কলাপাড়া মহিলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক এখন সুস্থ

 কলাপাড়া মহিলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক এখন সুস্থ



তুহিন আহমেদ রাঙ্গাবালী প্রতিনিধিঃ

পটুয়াখালী ৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অধ্যক্ষ মোঃ মহিব্বুর রহমান (মহিব) এম,পি মহোদয় এর সহধর্মিনী আলহাজ্ব জাল্লাল উদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ জনাবা ফাতেমা আক্তার রেখা ম্যাডাম এখন সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন | সবাই তার জন্য দোয়া করবেন আল্লাহ পাক যেনো তাকে  সুস্হ রাখে | আপনার সুস্বাস্থ্য কামনাই হোক আমাদের প্রত্যাশা,

ঝিকরগাছায় মাছের খাদ্য ও মাছ চাষিদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

 ঝিকরগাছায় মাছের খাদ্য  ও মাছ চাষিদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত



প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ ঝিকরগাছায় মাছের খাদ্য  ও মাছ চাষিদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। আজ  শুক্রবার (২২ শে আগস্ট ) যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার পোস্ট অফিসের পাশে নিহালি রিসোর্স লিমিটেড মাছের খাদ্য ও মাছের ঔষধ আমাদানি কারক প্রতিষ্ঠানের আঞ্চলিক  ডিলার দের নিয়ে বেলা ১১ টার সময় এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মতিয়ার রহমান আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক। প্রধানঅতিথি  ছিলেন আবুল কাশেম  সিইও ঢাকা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন  ইলিয়াস আহমেদ, কিরোন হোসন, অফিস সহকারি রমজান আলী ,ডিলারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন  নজরুল ইসলাম ,  আক্তারুজ্জামান, জিয়াউর রহমান, জাহিদুর রহমান সজল,মতিয়ার রহমান,আলহাজ্ব আব্দুর রব,গোলাম মোস্তফা, আব্দুস সামাদ,প্রমুখ।অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি  সেরা ডিলার হিসেবে নজরুল ইসলাম কে উপহার সামগ্রী তুলেদেন। 


নন্দীগ্রামে ইউনাইটেড প্রেসক্লাব ঘোষনা সভাপতি জুয়েল, সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদ

 নন্দীগ্রামে ইউনাইটেড প্রেসক্লাব ঘোষনা সভাপতি জুয়েল, সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদ




আব্দুল আহাদ, নন্দীগ্রাম বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় তরুন প্রজন্মের সাংবাদিকদের নিয়ে নন্দীগ্রাম ইউনাইটেড প্রেসক্লাব ঘোষনা করা হয়েছে। ২২শে আগষ্ট ২০২০ইং তারিখ শনিবার নন্দীগ্রাম বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অস্থায়ী কার্যালয়ে (দৈনিক আলো প্রতিদিন ও জাতীয় দৈনিক ঘোষনা পত্রিকা এবং চ্যানেল টি-ওয়ান) এর সাংবাদিক মো: আমিনুল ইসলাম জুয়েলকে সভাপতি ও (জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার ও জাতীয় দৈনিক সন্ধাবানী পত্রিকার সাংবাদিক মোঃ আবু সাঈদকে সাধারন সম্পাদক করে ১৪ সদস্য বিশিস্ট কমিটি ঘোষনা করা হয়। প্রেসক্লাবের অন্যান্য সদস্যরা হলেন, সহ-সভাপতি মোঃ আব্দুল মান্নান ( দৈনিক বার্তা প্রবাহ), যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান ( জাতীয় দৈনিক গণমুক্তি), সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ খাইরুল ইসলাম (বিশেষ প্রতিনিধি দৈনিক মুক্ত বার্তা), সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আবুল কালাম আজাদ (জাতীয় দৈনিক বিশ্ব মানচিত্র), প্রচার সম্পাদক মোঃ আব্দুল আহাদ প্রাং (দৈনিক উত্তরের দর্পণ ও জাতীয় দৈনিক সংবাদ সারাদেশ), দপ্তর সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান (সাপ্তাহিক নয়া পদক্ষেপ), অর্থ সম্পাদক মোঃ আব্দুল জব্বার (জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশের আলো), আইন বিষয়ক সম্পাদক মোঃ গওছল বারী (জাতীয় দৈনিক সকালের সময়), প্রশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুস সাত্তার  (দৈনিক মহাস্থান), ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ শফিউল আলম (পল্লী টেলিভিশন), তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক মোঃ এমদাদুল হক (জাতীয় দৈনিক দেশ বাংলা পত্রিকা ও এন এ টিভি), সদস্য মোঃ মজনুর রহমান মজনু (টিভি বাংলা)।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ যুবদলের কমিটি পেলো, শৈলকুপা উপজেলা যুবদল

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ যুবদলের কমিটি  পেলো, শৈলকুপা উপজেলা  যুবদল





সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন নিয়ে আসাদ সাহেবর গ্রুপের বিভিন্ন লোক জন অভিযোগ করেছেন যে, ঝিনাইদহ জেলার যুবদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক টাকার বিনিময় এই কমিটি ঘোষণা করেছেন। কিন্তু সরেজমিনে তদন্ত করে দেখা যায় শৈলকুপা উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, শৈলকুপা ডিগ্রি কলেজের সাবেক এ.জি.এস শৈলকুপা উপজেলার সব থেকে নির্যাতিত যুব নেতা ১৮ মামলার এজাহার ভুক্ত আসামী ৬ বারে ৯ মাসের ও বেশি সময় কারাবরণ। বহুবার হামলা শিকার। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত বাড়ি ছাড়া আবু জাহিদ চৌধুরী কে শৈলকুপার উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক  এবং ৬ মামলার আসামি ৩ বার কারাবরণ ও ৫ বার থানা হেফাজতে নিয়ে পুলিশের নির্যাতন। শৈলকুপা থানার সামনে ঝিনাইদহ জেলার সব থেকে বড় পোল্ট্রির বাচ্চা ও খাবারে ডিলার শীপের দোকান বন্ধ করে দিয়েছে। বছরের পর পর বছর বাড়ি ছাড়া যুব নেতা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ১৫ নং ফুলহরি ইউনিয়ন পরিষদ ও  শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির ২ নং  সদস্য  মোঃ জমির উদ্দিন কে  বর্তমান কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে। শৈলকুপা উপজেলার সকল স্তরের নেতা কর্মীরা এই কমিটি কে, শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের প্রাণ ফিরিয়ে আনতে বড় ভুমিকা পালন করবে বলে মত প্রকাশ করেন। । তারা প্রতিবেদক কে জানান যে, ২০০৮ সালে যারা আনারস মার্কায় ভোট করেছিলো, ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত হাতে গোনা ৪/৫ টা মিছিল মিটিং এর বেশি করেনি। তারা সব সময় শৈলকুপা উপজেলা বি এন পি ধংস করার কাজে লিপ্ত আছে তারাই এই কমিটির নামে মিথ্যা চার করছে। এই কমিটি কে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় বি এন পির সহসাংগঠনিক সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুণ্ড, ঝিনাইদহ ১ শৈলকুপা উপজেলার ৩ বারের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এম এ আব্দুল ওহাব ও ঝিনাইদহ জেলা বিএনপি নেতা ওসমান সাহেব এবং শৈলকুপা উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ এবং জেলা সাবেক সহসভাপতি, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আসাদুজ্জামান আসাদ, সাবেক চেয়ারম্যান, ও উপজেলা বি এন পির যুগ্ন আহাব্বায়ক রফিকুল ইসলাম ও ফিরোজ ভাই সহ সকল নির্যাতিত ও মাঠের বিএনপির নেতা কর্মীরা । জাহিদ চৌধুরি ও জমির উদ্দিনের কমিটি শৈলকুপা উপজেলা যুবদল  প্রতিষ্ঠার পর সব চেয়ে  শক্তি শালি কমিটি হয়েছে। তারা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে মিথ্যা চারের তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

১৬ শর্তে খোলা হচ্ছে চট্টগ্রামের বিনোদন কেন্দ্রগুলো

১৬ শর্তে খোলা হচ্ছে চট্টগ্রামের বিনোদন কেন্দ্রগুলো



কাজী মোঃ সাজ্জাদ হাসান:পাঁচ মাসের বেশি সময় বন্ধ থাকার পর ১৬ শর্তে চট্টগ্রামের সব বিনোদন কেন্দ্র খুলছে আজ শনিবার (২২ আগস্ট)। জেলা প্রশাসক (ডিসি) ইলিয়াস হোসেন  বলেন,  দর্শনার্থীদের মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলকসহ ১৬টি শর্ত বাস্তবায়ন সাপেক্ষে আমরা নগরীর বিনোদন কেন্দ্রগুলো চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শনিবার থেকে সব বিনোদন কেন্দ্র দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। তবে কোন বিনোদন কেন্দ্র যদি এসব শর্ত না মানে তাহলে সেটি পুনরায় বন্ধ করে দেওয়া হবে।





ডিসি বলেন, বিনোদন কেন্দ্রগুলো এসব নির্দেশনা মানছে কিনা তা তদারকি করতে একটি ‘মনিটরিং টিম’ থাকবে। তারা বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে সরেজমিনে গিয়ে এসব বিষয় তদারকি করবেন। লল

নির্দেশনাগুলোর মধ্যে রয়েছে- পার্কের প্রবেশ পথে জীবানুমুক্ত ট্যানেল স্থাপন, থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে দর্শনার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপের ব্যবস্থা, পার্কে প্রবেশের ক্ষেত্রে দর্শনার্থীদের শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা, প্রবেশ পথে নিরাপদ শারীরিক দূরত্বের জন্য এক মিটার পরপর মার্কিং লাইন করা, পার্কে ময়লা ফেলার পাত্র ও স্যানিটাইজার অথবা হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা, পার্ক খোলার আগে-পরে এবং মধ্যবর্ত্তী সময়ে বিভিন্ন রাইড, শৌচারগার জীবাণুমুক্ত করা, দর্শনার্থীরা শৌচাগার ব্যবহারের পর দরজার হাতল, বেসিন জীবাণুমুক্ত করা, রাইডে দর্শনার্থীদের এক আসন পরপর বসানো এবং যেসব রাইডে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে না সেগুলো বন্ধ রাখা। পার্কের প্রবেশপথ ও রাইডের কাছে তিন জনের বেশি জনসমাগম করতে না দেওয়া, স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা কাপড় পরা নিশ্চিত করা, পার্কের ভেতরে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত বোর্ড, লিফলেট বিতরণ করা এবং ফুড কর্নারে বসে খাওয়া দাওয়া না কর।।





করোনোর প্রাদুর্ভাব শুরুর পর ১৮ মার্চ চট্টগ্রামের সব বিনোদন কেন্দ্রগুলো বন্ধ করা হয়। ওইদিন দুপুর থেকে পুলিশ পতেঙ্গা সৈকত, সিআরবি শিরীষতলাসহ বিভিন্ন উন্মুক্ত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের প্রবেশ ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ঠেকাতে কড়াকড়ি আরোপ করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ।।





বিনোদন কেন্দ্রগুলো আজ থেকে খুললেও চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা খুলবে আগামীকাল রবিবার (২৩ আগস্ট)। চিড়িয়াখানার ডেপুটি কিউরেটর ডা. শাহাদাত হোসেন শুভ বলেন,  নগরীর অন্যান্য বিনোদন কেন্দ্রগুলো আজ থেকে খুললেও চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা আগামীকাল থেকে খুলবে। শুক্রবার (২১ আগস্ট) চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক জেলা প্রশাসক ইলিয়াস হোসেন স্যার এ সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। চিড়িয়াখানায় যেহেতু সবসময় ব্যাপক জনসমাগম হয়, সেজন্য বাড়তি প্রস্তুতি নিতেই একদিন বেশি সময় নেওয়া হয়েছে।

কুয়াকাটায় ছাত্রলীগ সভাপতির মুক্তি দাবিতে পৌর ছাত্রলীগের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন

 কুয়াকাটায় ছাত্রলীগ সভাপতির মুক্তি দাবিতে পৌর ছাত্রলীগের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন




নাঈমুর রহমান কুয়াকাটা প্রতিনিতি:কুয়াকাটা পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি মজিবর রহমানকে মহিপুর থানা পুলিশ উদ্দেশ্যমূলক আটক করে মামলায় ফাঁসিছে দাবি করে পৌর ছাত্রলীগ বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন শেষে সংবাদ সম্মেলন করেছে। শনিবার সকাল ১০টায় কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। পরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ তাইফুর রহমান হাসান বলেন, গত ১৭ আগস্ট রাত ১০টার দিকে কুয়াকাটার আবাসিক হোটেল কিংস এর সামনে কতিপয় ছাত্রলীগ কর্মীদের সাথে তুচ্ছ একটি ঘটনায় পুলিশের কথা কাটাকাটি হয়। খবর পেয়ে সেখানে পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি মোঃ মজিবর রহমান যান। পুলিশের কাছে তার পরিচয় দিয়ে কথা বলতে গেলে কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাকে লাঞ্ছিতের পাশাপাশি আটক করে। তার বিরুদ্ধে পুলিশের দায়ের করা মামলায় পুলিশের কাজে বাধাদান ও আক্রমণ এবং জুয়ার আসর থেকে আটকের দাবি করা হলেও পুলিশের এসব দাবি ছিল সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগ নেতা মজিবর রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা থেকে অবিলম্বে অব্যাহতি এবং নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করা হয়। কুয়াকাটা প্রেসক্লাব সভাপতি নাসির উদ্দিন বিপ্লবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক মিরাজুল ইসলাম বাবু, জেলা ছাত্রলীগের সদস্য মোঃ জসিম উদ্দিন, কুয়াকাটা খানাবাদ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুবক্কর আবীর, পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি ইলিয়াস শেখ ও সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ সাদ্দাম মাল প্রমুখ। কুয়াকাটা প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক কাজী সাঈদের সঞ্চালনায় লিখিত বক্তব্যের বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন উপস্থিত ছাত্রলীগ কর্মীরা। এসময় প্রেসক্লাবের ভেতরে ও বাহিরে ছাত্রলীগের শতাধিক নেতা কর্মী মজিবর রহমানের মুক্তি দাবিতে বিভিন্ন প্লাকার্ড ফেস্টুন নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। এদিকে পুলিশ উদ্দেশ্যমূলক কাউকে গ্রেফতার করেনি দাবি করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহিপুর থানার পরিদর্শক মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, গত ১৭ আগস্ট রাতে মজিবর রহমানসহ ১০/১২ জন কিংস হোটেলে জুয়া খেলছিল। সেখান থেকে পাঁচজনকে পুলিশ গ্রেফতারে সক্ষম হয়।

নওগাঁ সাপাহারে ৩ টি মোটরসাইকেল সহ চোর দলের দুই সদস্য গ্রেপ্তার

 নওগাঁ সাপাহারে ৩ টি মোটরসাইকেল সহ চোর দলের দুই সদস্য গ্রেপ্তার




রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর সাপাহারে ৩ টি মোটরসাইকেল সহ বাবু (২৭) ও রুমন (২৫) নামে অাত্নঃজেলা চোর দলের দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোর ৫ টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার শিবনাথ একালা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।


শনিবার সন্ধ্যায় সাপাহার থানা চত্ত্বরে এক প্রেস বিফিংএ সহকারী পুলিশ সুপার বিনয় কুমার সাংবাদিকদের জানান, ৩০ জুলাই সাপাহার বাজার এলাকা হতে সাদেকুল ইসলাম নামে এক ব্যাক্তির বাজাজ সিটি ১০০ সিসি মোটরসাইকেল চুরি হয়ে যায়। এ ঘটনায় সাদেকুল ইসলাম বাদী হয়ে সাপাহার থানায় ২২ আগস্ট একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-৩১। ওই মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়ার নির্দেশনায় সংশ্লিষ্ট স্থানের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ পূর্বক সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার বিনয় কুমারের নের্তৃত্বে সাপাহার থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করেন। এসময় তাদের দখল হতে ৩ টি ১০০ সিসি চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

এসময় সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই, ওসি তদন্ত আল মাহমুদ, থানার অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা সহ গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

হরিণাকুন্ডুতে ভ্রাম্যমাণ আদালতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দা নাফিস সুলতানা

 হরিণাকুন্ডুতে ভ্রাম্যমাণ আদালতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দা নাফিস সুলতানা



খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃ

ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডুতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা আদায় করা হয়েছে। 

শনিবার দুপুরে উপজেলা সদরের বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জরিমানা আদায় করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা নাফিস সুলতানা জানান,

প্লাস্টিক মোরক ব্যবহার,মাস্ক পরিধান না করা, রাস্তা দখল করে পেট্রোল বিক্রয় করা সহ 

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হাত থেকে বাচতে পৌরসভার উপজেলা ৬টি মামলায় ৬  জনকে ১৪ হাজার ৪ শত টাকা জরিমানা আদায় করেন।

পেট্রোল বিক্রেতার নিকট থেকে ১ হাজার,চাতাল পট্টিতে আব্দুল সাত্তারকে ১০ হাজার,

কুলবাড়িয়া বাজার মুদী বিক্রেতা মসলেম উদ্দীনকে ২ হাজার, দুইটি চা স্টলে দোকানীকে ৪ শত, আলমগীর হোসেনকে ১ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

দিনাজপুরে ওয়ার্ল্ড ভিশনের উদ্যোগে পিপিই বিতরণ অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার

দিনাজপুরে  ওয়ার্ল্ড ভিশনের উদ্যোগে পিপিই বিতরণ অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার




মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ২২ আগষ্ট শনিবার পুলিশ সুপার কার্যালয়ে ওয়ার্ল্ড ভিশন দিনাজপুর এরিয়া প্রোগ্রাম এর উদ্যোগে সম্মুখ সারির কোভিড-১৯ যোদ্ধাদের (পুলিশ সদস্য) ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) বিতরণ করা হয়। 

বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ল্ড ভিশনের এপিসি ম্যানেজার অনুকুল চন্দ্র বর্মন, প্রোগ্রাম অফিসার দীনো দাস, এন্টিনা দাস, বার্নাড কুজুর, যোহন মুর্মু, জুনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার সারা মিতা হালদার। পিপিই গ্রহণকালে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোঃ আনোয়ার হোসেন, বিপিএম, পিপিএম (বার) এর পক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) শচিন চাকমা বলেন, করোনা ভাইরাসে দিনাজপুর জেলার ২৭১৭ জন পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ জন মারা গেছেন। আইন শৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি পুলিশ সদস্যরা এই করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় নিজের জীবন উপেক্ষা করে প্রথম সারির যোদ্ধা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। তাই তাদের সুরক্ষার জন্য সরকারের পাশাপাশি ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ সুরক্ষা সরঞ্জাম বিতরণ করছে। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুজন সরকার, কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোজাফ্ফর হোসেন। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এপিসি ম্যানেজার অনুকুল চন্দ্র বর্মন ৫৪টি সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) প্রদান করেন।

নারায়ণগঞ্জে নতুন সনাক্ত ১২ জন, নেই কোনো নতুন মৃত্যু

 নারায়ণগঞ্জে নতুন সনাক্ত ১২ জন, নেই কোনো নতুন মৃত্যু




শিপন,নারায়ণগঞ্জ রিপোর্টারঃনারায়ণগঞ্জে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে  ১২ জনের  করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। নতুন করে পাওয়া যায়নি মৃত্যু। 


জেলায় ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা বিদ্যমান মোট ১৩০ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ২৫২ জন। এ সময়ে সুস্থ ২৫ জন। সর্বমোট সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫ হাজার ৮৮১ জন। ২২ আগস্ট শনিবার জেলা সিভিল সার্জন সূত্রে এই তথ্য নিস্চিত করেন।


সূত্র মতে যানা যায়, ২১ আগস্ট সকাল ৮টা থেকে ২১ আগস্ট সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টা হিসাবে ১১২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। যার মধ্যে এলাকা ভিত্তিক নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে রূপগঞ্জ উপজেলায় ইউএস বাংলা বেসরকারী ল্যাব সহ ৩৮ জন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও ৩০০ শয্যা হাসপাতালের পিসিবার ল্যাব সহ ৫৪ জন এবং সদর এলাকায় ২০ জন। আড়াইহাজার উপজেলায়, বন্দর উপজেলায় ও সোনারগাঁ উপজেলায় নতুন করে কোন নমুনা সংগ্রহ হয়নি। জেলায় এই পর্যন্ত মোট ৩৫ হাজার ৯৫৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ ৭ম শেনীর ছাএীকে বাল্যবিবাহের হাত থেকে রক্ষা করলেন সহকারী কমিশনার

সিরাজগঞ্জ ৭ম শেনীর ছাএীকে বাল্যবিবাহের হাত থেকে রক্ষা করলেন সহকারী কমিশনার




মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ অদ্য ২২/০৮/২০২০ গোপন সূত্রের ভিত্তিতে বাল্যবিবাহ হচ্ছে সংবাদ পেয়ে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কালিয়া হরিপুর ইউনিয়নের মোড় গ্রামে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বাল্যবিবাহ বন্ধ করেন

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী  (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ। 

বাল্যবিবাহের শিকার হতে যাওয়া অপ্রাপ্তবয়স্ক 'কনে' সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী। পিএসসি সনদ মর্মে তার বয়স ১৫ বছর নিশ্চিত করা হয়। তার মাতা জয়নব এর নিকট থেকে ১৮ বছর বয়স হওয়ার পূর্বে বিয়ে দিবেন না মর্মে মুচলেকা নেয়া হয় এবং এসময় বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর আওতায় ৪,৫০০/- (চার হাজার পাঁচশত টাকা) অর্থদন্ড দেয়া হয়।

মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী  (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ। 

অভিযান পরিচালনায় সহযোগিতা করেন উপজেলা ভূমি অফিসের স্টাফগণ এবং সদর থানা পুলিশ।

পাশাপোল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালাচ্ছে - প্রভাষক সবুজ

পাশাপোল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালাচ্ছে - প্রভাষক সবুজ



নিজস্ব প্রতিনিধিঃ  যশোর চৌগাছা উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়ন পরিষদের আগামী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য প্রভাষক সবুজ প্রচারণা চালাচ্ছেন । আগামী ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে এখনো প্রায় ১ বছরের অধিক সময় বাকী আছে। কিন্তু এরই মধ্যে প্রচারণা শুরু করেছেন এই নেতা।


ছাত্রলীগের হাত ধরে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। পাশাপোল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক  এর দায়িত্ব পালন করেন দক্ষতার সাথে।  বর্তমানে এই নেতা পাশাপোল  ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক (প্রস্তাবিত)  হিসেবে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে চলেছেন । তার দায়িত্ব পালনে সততা ত্যাগ এবং হাইকমান্ডের নির্দেশ পালন করাসহ প্রতিটি দলীয় কর্মসূচী তে অংশ গ্রহন করে কর্মসূচি সফল করায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করায় উপজেলা ও ইউনিয়নের নেতা কর্মীদের সুনজরে আছেন।


এ বছর করোনা কালীন সময়ে তিনি অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন নিজের সাধ্যমত, এবং বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত রেখেছেন নিজেকে। তার প্রত্যাশা সে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে নিজেকে উৎসর্গ করতে চান। রাজনৈতিক জীবনে গরীব দুঃখি মানুষের পাশে থেকে অসহায় মানুষের সেবা করে চলেছেন সবসময়। মাদক বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন সহ ধর্ষনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠস্বর নামে পরিচিত তিনি।  তিনি পাশাপোল  ইউনিয়নের প্রতিটি মানুষ এবং যুবসমাজের প্রিয় মানুষ, 

দানশীলতা এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও সবসময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকায় অত্র ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ তাকে আগামী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় পাশাপোল  ইউনিয়নের আপামর জনগণ।


তিনি আমাদের জানান, আমার ইউনিয়নের মানুষ যদি চায় আমি আমার সকল কিছু দিয়ে তাদের পাশে থেকে সেবা করবো ইনশাআল্লাহ ।তাদের এই চাওয়া পূরনের জন্য এবং তাদের সেবা করার জন্য আমি চেয়ারম্যান হিসেবে আগামী ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। আমি অত্র ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের উপর পূর্ণ আস্হা রেখে শুধু এটুকুই বলব এতগুলো মানুষের চাওয়া কখনো মিথ্যা হতে পারেনা। বিজয় আমাদের হবেই ইনশাআল্লাহ

হবিগঞ্জে সদর হাসপাতালে স্যালাইনের স্ট্যান্ডের পরিবর্তে বাঁশ!

হবিগঞ্জে সদর হাসপাতালে স্যালাইনের স্ট্যান্ডের পরিবর্তে বাঁশ!



লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জ জেলার সদর আধুনিক হাসপাতালে এখন নামেই আধুনিক ধীরে ধীরে কমতে শুরু করেছে এই হাসপাতালের প্রয়োজনীয় সুবিধা। অবস্থা এখন এমন যে এখানে বিভিন্ন ওয়ার্ডের বেডগুলোতে স্যালাইন দেওয়ার স্ট্যান্ডও খুঁজে পাওয়া যায় না। এর বদলে রোগীদের বেডের পাশে ব্যবহার হচ্ছে বাঁশ। এ নিয়ে হাসপাতালে আগত রোগীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। অনেক রোগীর স্বজন বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও দিচ্ছেন স্ট্যাটাস কিন্তু এরপরেও টনক নড়েনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালটিতে প্রতিটি ওয়ার্ডে এই করোনাকালীন সময়েও রোগীর ভিড় রয়েছে। তবে হাসপাতালের ভেতরের পরিবেশ খুবই অপরিচ্ছন্ন। ময়লা ও দুর্গন্ধের কারণে হাসপাতালের ভেতরে সবাইকে নাকেমুখে হাত দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে রোগীর স্বজনদের অভিযোগ, নিয়মিত পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি এই হাসপাতালে তেমন একটা মানা হয় না সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়।


প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ডের বেডে রোগী থাকলেও তাদের জন্য স্যালাইন লাগানোর জন্য কোনও স্ট্যান্ড নেই। নিয়ম অনুযায়ী, প্রতিটি বেডের পাশে স্যালাইন কিংবা এ ধরনের ওষুধ ব্যবহারের সুবিধার্থে একটি করে লোহার স্ট্যান্ড যুক্ত বা আলাদাভাবে থাকার কথা। কিন্তু, কোনও বেডের পাশে তেমন কিছু দেখা যায়নি। বরং দেখা গেছে, রোগীর স্বজনরা বাধ্য হয়ে নিজ নিজ প্রয়োজনে বাঁশ এনে বেডের সঙ্গে আটকিয়ে স্ট্যান্ড হিসেবে ব্যবহার করছেন।


এ বিষয়ে জানতে চাইলে সদর উপজেলার নিজামপুর থেকে আসা এক নারী রোগীর আত্মীয় রহিম মিয়া জানান, ভাই হাসপাতালের নার্স-আয়াদের কাছে চেয়েও স্ট্যান্ড পাইনি। তারা বলেছেন রোগীর স্যালাইন ঝোলানোর স্ট্যান্ড এ হাসপাতালে নাকি খুবই কম। সেগুলোও ভেঙে গেছে। পাওয়া যাবে না বাধ্য হয়ে আমাদের প্রয়োজনে বাঁশ দিয়ে স্ট্যান্ড বানিয়ে নিয়েছি ডাক্তার এসে স্যালাইন পুশ করার কথা বলে চলে যায়।


সেটা কিসের ওপর আটকিয়ে পুশ করা হবে সে বিষয়ে কিছু বলে না। স্ট্যান্ড না থাকলে স্যালাইন হাতে ধরে দাঁড়িয়ে বা বসে থাকতে হয়। তাতে স্যালাইনের ফোঁটার গতি কম-বেশি হয়ে যায়। তাই অন্যদের কাছে বাঁশ নিয়ে আসার পরামর্শ পেয়েছি। তাদের মতো আমরাও বাঁশ দিয়ে স্ট্যান্ড বানিয়েছি এ হাসপাতাল শুধু নামেই আধুনিক বাস্তবে কিছুই নেই।


হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পইল গ্রাম থেকে রোগী নিয়ে হাসপাতালে আসা রোজী কমলা বানু জানান, অধিকাংশ বেডের মধ্যেই স্যালাইন দেওয়ার কোনও স্ট্যান্ড নাই, যার প্রয়োজন বাঁশ দিয়েই কাজ সারছে। হাসপাতালের কোনও কর্মচারীকে অনুরোধ করার পরও কোনও স্ট্যান্ড পাওয়া যায়নি।


এ বিষয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে আব্দুল মুবিন মিজান নামে এক ব্যক্তি তার ফেসবুকে স্ট্যাটাসও দিয়েছেন ওই স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, আমি গতকাল (রবিবার রাতে) আমার এক আত্মীয় (রোগীকে) নিয়ে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসা জন্য গিয়েছিলাম। কর্তব্যরত ডাক্তার আমার রোগীকে দেখে হাসপাতালে ভর্তির করার জন্য পরামর্শ দিলেন।


কী আর করা রোগীকে নিয়ে গেলাম নিচতলায় নারী মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করার জন্য আমার রোগীকে নিয়ে ওয়ার্ডে যাওয়ার সাথে সাথেই চোখে পড়লো বাঁশ, অধিকাংশ চিকিৎসাধীন রোগীর সিট বেডের সাথে ঝুলানো আছে একটি করে ২-৩ হাত লম্বা বাঁশ। স্বাভাবিকভাবে মনে প্রশ্ন জাগলো এসব বাঁশের মানে কী।


তবে এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেতে আমার বেশি সময় লাগলো না। ওয়ার্ডে কর্তব্যরত সেবিকা (নার্স) আমাকে বললেন, ভাই আপনার রোগীকে দ্রুত স্যালাইন দিতে হবে। তিনি স্যালাইন কেনার সঙ্গে সঙ্গে রোগীর স্যালাইন ঝোলানোর জন্য একটি স্ট্যান্ড সংগ্রহেরও পরামর্শ দিলেন।


স্যালাইন এনে খুঁজতে শুরু করলাম স্যালাইন দেওয়ার স্টেন (স্ট্যান্ড)। কোথাও খুঁজে পেলাম না এই মহা মূল্যবান জিনিসটি। স্ট্যাটাসে তিনি আরও লেখেন এই মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে মোট রোগীর সংখ্যা প্রায় ২৯জন। দুঃখজনক হলেও সত্য এতো রোগীর স্যালাইন দেওয়ার জন্য একটি স্যালাইন স্ট্যান্ডও নেই এই ওয়ার্ডে।


ফলে বাধ্য হয়ে রোগীকে স্যালাইন দেওয়ার প্রয়োজনে ব্যবহার করতে হচ্ছে বাঁশ অথবা জানালার লোহার গ্রিল।

তিনি আরও লিখেছেন শিশু ওয়ার্ডের চিত্রও প্রায় একই রকম। আমি হতাশা নিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও হাসপাতালে একখানা স্ট্যান্ড পেলাম না। খুঁজে একটা বাঁশও পাইলাম না।


পরে জানতে পারিলাম স্যালাইনে ব্যবহারিত ( ব্যবহৃত ) বাঁশগুলো রোগীরা (রোগীর স্বজনরা) নিজেরাই সংগ্রহ করিয়া আনিয়াছে। আমি একটি বাঁশ একজন রোগীর কাছ থেকে ধার এনে আমার রোগীর স্যালাইন স্টেন ( স্ট্যান্ড ) হিসাবে ব্যবহার করিলাম এই হলো বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের হাল চিত্র।


এরপর পাদটীকা হিসেবে ওই স্ট্যাটাসে তিনি অন্যদের পরামর্শ দিয়েছেন, যারা চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে যাবেন দয়া করে সাথে একখানা ২-৩ হাত লম্বা বাঁশ নিয়া যাবেন বলা তো যায় না বাঁশের প্রয়োজন হতে পারে।

হাসপাতালের এই দুরবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে হবিগঞ্জ সদর। 


হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ শামীম আরা বলেন, এখানে ২৫০ শয্যার হাসপাতাল হলেও কর্মকর্তা ও কর্মচারী এবং প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম রয়েছে ১০০ শয্যার। আমার অনেক বেডের স্ট্যান্ড নষ্ট হয়ে গেছে এর বিকল্প হিসেবে দু একটিতে বাঁশ থাকতে পারে বাইরে থেকে বাঁশ নিয়ে আসার কথা।


অস্বীকার করে তিনি বলেন তবে রোগীর স্বজনরা বাঁশ নিয়ে আসছে কথাটি মিথ্যা। আমরা চেষ্টা করছি একাধিক নষ্ট হওয়া স্ট্যান্ড মেরামত করার জন্য। তিনি বলেন বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে আশা করি দ্রুতই ঠিক হয়ে যাবে। হবিগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমার নজরে নেই আমি আপনার মাধ্যমে শুনলাম। এটা সাময়িক কাজের জন্য হতে পারে তবে বাঁশ দিয়ে কোনও সমাধান হতে পারে না আমি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবো।

কার কথা বলব আমি? সুমন হালদার

কার কথা বলব আমি?   সুমন হালদার




আমি কার কথা বলব?

দুঃখিনী মাতা,কঙ্কালসার ভাই

যাদের পেট ভরে জলের পানির স্রোতে;

আমি কি আমার লালপরী বোনের কথা বলব

যে বাঁচতে পারেনি,বাঁচতে দেয়নি...

নাকি আমার বৃদ্ধ বাবার কথা বলব

যার বুকে ও পিঠে রক্তজবার ক্ষত।

আমি কি আমার বন্ধু, যে নাটাই উড়াত তার কথা বলব?

যার বুকে মরন বেঁধেছে বাসা।

আমি কি বলব ন্যাড়ার মা,

ক্যাঙলার কাকি নাকি হুজুর চাচার কথা

আমি লিখব নাকি পদ্মার স্রোত

নাকি বয়ে যাওয়া রুপসার ইলিশের গান।

আমি ক্ষত কত দেখেছি

কত ফুল দেখেছি

আর কত বাসক সিরাপ খেয়েছি

দুচোখে বলেছি,

মরন যেখানে বাসা বেঁধেছে তার নাম

কারাগার নয়!

কবিতার মাঠ মিজানুর রহমান তোতা

কবিতার মাঠ  মিজানুর রহমান তোতা




কবিতার মাঠে হাঁটছি তো হাঁটছিই,

বিস্তৃত এই পথ, আকাশের মতো বিশাল। 

সহজে দেয়া যাবে না কবিতার মাঠ পাড়ি। 


পথ চলতে শত শত অভিবাদন পাচ্ছি,

খুশীতে গদগদ হচ্ছি, 

ব্যক্তি ও সমষ্টিগত বাদ প্রতিবাদ হারা।

কবিতার মাঝে খুঁজে ফিরি আত্মতৃপ্তি।

সমাজ রাষ্টের কী লাভ হয় জানি না। 


তবুও কবিতার মাঠে হাঁটছি তো হাঁটছিই।

কবিতা আমার হাতিয়ার কিন্তু নেই ব্যবহার।

মনপ্রাণ দিয়ে কলম খুলে আমরা কী লিখি?


অনিশ্চিত মূহূর্তের হাতছানি।

তবুও কবিতা লিখে চলেছি।


মস্তিস্কপ্রসূত তথ্যের সমাহার ঘটিয়ে লিখছি কবিতা।

আবেগের  স্রোতে অবগাহন হিমালয় পর্বত আকাশ। 

এটি তো নয় কবিতা।


কবিতা হবে অন্যায় অপকর্মের বিরুদ্ধে চাবুক।

প্রেম ভালোবাসাও থাকবে কিংবা ফুল পাখির গল্প।

মূলত কবিদের কাজ কবিতা লেখা সমাজ বিনির্মাণে।


কবিতা লিখি মনের ক্ষুধা মিটাতে।

এতে কারো হৃদয় স্পর্শ করে না। 

বিপ্লব হয় না, পানসে সব কবিতা।

নাড়া দেওয়ার মতো কবিতা নেই।


যে যার মতো আমরা পাতা পাতা লিখে চলেছি।

কবিতার মাঠে উদাস মনে হাঁটছি, ঘুরছি, ফিরছি। 

আত্মতৃপ্তির ঢেঁকুর তুলছি।

তাতে কী সমাজ রাষ্ট্রের কোন উপকারে আসছে?

যতসব অন্ধ উম্মাদনা।


রহস্য উম্মোচনের দরজা বন্ধ করে লিখছি কবিতা।

জীবন ও জীবিকা সুরক্ষার তত্ত্ব হয় কী উপস্থাপিত?

কৃষক, শ্রমজীবিদের বঞ্চনার প্রতিবাদ কখনো হয়?


কবিতার বিশাল মাঠে কবিদের দৌড়াদৌড়ি। 

দেশ জাতির দিক নির্দেশনায় বের হয় কী মহাকাব্য?


ক্ষুরধার লেখনিতে দুর্নীতি অন্যায় ভেসে যাবে।

মানুষ মাথা তুলে দাঁড়াবে, প্রতিবাদী হবে।

তাহলেই হবে কবিতার মাঠে পথচলার স্বার্থকতা।


কবিতা হোক জীবনসত্ত্বার ক্যানভাস।

প্রস্ফুট হোক গতিময় বৈচিত্রপূর্ণ।

সমাজের ঘুণপোকা অপসারণে হিরন্ময় হাতিয়ার।

আশাশুনির কুল্যা কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেন -ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার

আশাশুনির কুল্যা কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেন -ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার


আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা প্রতিনিধিঃ আশাশুনি উপজেলার কুল্যা কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার। শনিবার দুপুরে তিনি এ কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে ডাক্তার সুদেষ্ণা সরকার বলেন বর্তমানে মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। একমাত্র সচেতনতাই পারে আমাদেরকে এ মহামারীর হাত থেকে রক্ষা করতে। এজন্য সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং অবশ্যই মাক্স ব্যবহার করতে হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন এস আই জি এম গোলাম মোস্তাফা, এইচ এ মোক্তারুজ্জামান স্বপন, সিএইচসিপি অমিত সরকার।

সিরাজগঞ্জ কাজিপুরে নদী তীর রক্ষাবাধে ধস

 সিরাজগঞ্জ কাজিপুরে নদী তীর রক্ষাবাধে ধস



মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ।সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার ১ নং সাইড ঢেকুরিয়া পয়েন্টের শহিদ এম মনসুর আলী ইকোপার্ক  এর একশ গজ উত্তরে নদীতীর রক্ষাবাধে ধস নেমেছে। শনিবার ভোররাত সাড়ে তিনটা থেকে এই ধস শুরু হয়ে এ পর্যন্ত একশ মিটার বাধ নদীগর্ভে চলে গেছে।

 শনিবার সকালে সরেজমিন ভাঙন কবলিত স্থানে গিয়ে দেখে গেছে আতঙ্কিত লোকজন বাড়িঘর ও অন্যান্য জিনিসপত্র  ট্রাকযোগে সরিয়ে নিচ্ছেন। ভাঙন রোধে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় লোকজন বালিভর্তি জিওব্যাগ ফেলছে।

এসময়  স্থানীয় ইউপি সদস্য ও মাইজবাড়ি ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুস সালাম জানান, ‘ভোররাতে প্রচন্ড বৃষ্টি হচ্ছিল। সেইসময় প্রচন্ড ঘূর্ণাবর্তের সৃষ্টি হয়ে কয়েক মিনিটের মধ্যে আজগর আলীর একটি ঘর, টিউবওয়েল পানিতে দেবে যায়। ’

 পাউবোর উপসহকারি প্রকৌশলী (এসও) হায়দার আলী জানান, ‘ভোর থেকে আমরা পাঁচশ জিওব্যাগ ফেলার কাজ শুরু করেছি।’  এদিকে তীর রক্ষা বাধের পুরাতন ওয়াপদা বাধ সংলগ্ন স্থানে এই ধস দেখা দেওয়ায় ব্যাপক ঝুঁিকতে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঢেকুরিয়া হাট, কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও  আশপাশের সহ¯্রাধিক পরিবার।

দুপরে কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসান সিদ্দিকী ভাঙনস্থলে আসেন। এসময় তিনি ক্ষতিগ্রস্ত চারটি পরিবারকে শুকনো খাবার ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। এসময় তিনি জানান, ‘ আপাতত তাদের তাকার জন্যে তাবুর ব্যবস্থা করা হবে। পরে ঢেউটিন প্রদান করা হবে।

বানভাসি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে উপজেলা চেয়ারম্যান এ বি এম মোস্তাকিম

বানভাসি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে উপজেলা চেয়ারম্যান এ বি এম মোস্তাকিম




আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা প্রতিনিধিঃআশাশুনি উপজেলার সদর ও শ্রীউলা ইউনিয়ানের বানভাসি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম।


শনিবার সকালে তিনি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে বলেন- উপজেলার প্রত্যেকটি দুর্যোগময় মুহূর্তে আমি আপনাদের পাশে ছিলাম আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকবো। দুর্যোগকালীন সময়ে যতদিন থাকবে মানুষ যেন খাদ্য সহায়তা পায় তার ব্যবস্থা করা হবে কেউ অভুক্ত থাকবে না এবং খাদ্য সংকটে পড়বেন না তার জন্য আমি সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছে। সাগরে নিন্মচাপের প্রভাবে টানা বর্ষণে নদীর পানি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পাওয়ায় আশাশুনি সদরের দয়ারঘাট গ্রামের রিং বাঁধটি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। এছাড়া শ্রীউলা ইউনিয়নের হাজরাখালি, প্রতাপ নগর ইউনিয়নের চাকলা, সুভদ্রাকাটি, রুইয়ারবিল, নাকনা ওয়াপদা বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের তীব্র স্রোতে এবং জোয়ারের পানি বৃদ্ধির কারণে এই দুই ইউনিয়নের সমস্ত গ্রাম প্লাবিত ও আশাশুনি সদর ইউনিয়নের আংশিক এলাকা নতুন করে প্লাবিত হয়েছে। মানুষ পানিবন্দী হয়ে এখন মানবেতর জীবনযাপন করছে। পানিবন্দি মানুষ খাবার পানির তীব্র সংকটে ভুগছে এবং স্যানিটেশন ব্যবস্থা সম্পূর্ণরূপে ভেঙে পড়েছে। বাঁধগুলোর বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গে ও ধ্বসে যাচ্ছে। দয়ারঘাট, হাজরাখালী ও প্রতাপনগরের বাঁধগুলি টেঁকসই করে নির্মান করার দায়িত্ব পেয়েছেন আমাদের সেনাবাহিনীর সদস্যরা। তবে শীত মৌসুমে ছাড়া বাঁধগুলি মেরামত সম্ভব নয় বিধায় সে পর্যন্ত আমাদের এসব রিং বাঁধগুলি টিকিয়ে রাখতে হবে। আমি জেলা প্রশাসক, বিভাগীয় কমিশনার, পানি উন্নয়ন বোর্ড, এাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রনালয়সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে কথা বলেছি। সেনাবাহিনীসহ কন্ট্রাক্টরের কাজ শুরু না করা পর্যন্ত বাঁধগুলি মেরামত করতে তিনি যথাযথ কর্তৃপক্ষকে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান। ভাঙ্গন কবলিত বাঁধ নির্মাণ ও পানিবন্দি অসহায় মানুষের মানবেতর জীবন থেকে রক্ষা পেতে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।


ক্ষতিগ্রস্ত রিং বাঁধ বানভাসি এলাকা পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ছিলেন ইউপি শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু হেনা শাকিল, সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক স ম সেলিম রেজা মিলন, আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ বাচ্চুসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ

চট্টগ্রামের বিনোদন কেন্দ্র খুলেছে আজ

 চট্টগ্রামের বিনোদন কেন্দ্র খুলেছে আজ




শিপন নাথ:- দীর্ঘ পাঁচ মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকার পর ১৬ শর্তে চট্টগ্রামে সব বিনোদন কেন্দ্রগুলোর দুয়ার আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে খুলছে। এর আগে গত বুধবার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সম্মেলনে কক্ষে এক বৈঠকের পর নির্ধারিত দিন থেকে নির্দেশনা মেনে বিনোদন কেন্দ্রগুলো খুলে দেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।


 নির্দেশনাগুলোর মধ্যে রয়েছে- পার্কের প্রবেশ পথে জীবানুমুক্তকরণ ট্যানেল স্থাপন, থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে দর্শনার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপের ব্যবস্থা, পার্কে প্রবেশের ক্ষেত্রে দর্শনার্থীদের শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা, প্রবেশ পথে নিরাপদ শারীরিক দূরত্বের জন্য এক মিটার পরপর মার্কিং লাইন করা, পার্কে ময়লা ফেলার পাত্র ও স্যানিটাইজার অথবা হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা, পার্ক খোলার আগে ও পরে এবং মধ্যবর্ত্তী সময়ে বিভিন্ন রাইড, শৌচারগার জীবানুমুক্ত করা, দর্শনার্থীরা শৌচাগার ব্যবহারের পর দরজার হাতল, বেসিন জীবনুমুক্ত করা, রাইডে দর্শনার্থীদের এক আসন পরপর বসানো এবং যে সকল রাইডে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে না সেগুলো বন্ধ রাখা, পার্কের প্রবেশপথ ও রাইডের কাছে তিন জনের বেশি জনসমাগম করতে না দেওয়া, স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা কাপড় পরা নিশ্চিত করা, পার্কের ভেতরে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত বোর্ড, লিফলেট বিতরণ করা এবং ফুড কর্নারে বসে খাওয়া দাওয়া না করা।


দেশে করোনো ভাইরাস প্রাদুর্ভাব শুরুর পর গত ১৬ মার্চ সরকার দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। দু’দিন পর ১৮ মার্চ চট্টগ্রামের সকল বিনোদন কেন্দ্রগুলো পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়। ওইদিন দুপুর থেকে পুলিশ পতেঙ্গা সৈকত, সিআরবি শিরীষতলাসহ বিভিন্ন উন্মুক্ত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের প্রবেশ ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ঠেকাতে কড়াকড়ি আরোপ করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ।


তবে গেল পবিত্র ঈদুল আজহার আগেই চট্টগ্রামে উন্মুক্ত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীরা ধীরে ধীরে ভিড় করতে শুরু করে। বিশেষ করে বিকালে পতেঙ্গা সৈকত, কাট্টলী সাগর পাড়, মেরিন ড্রাইভ সংলগ্ন কর্ণফুলী পাড়, অভয়মিত্র ঘাট, সিআরবি শিরীষ তলাসহ বিভিন্ন জায়গায় শিশুসহ সব শ্রেণির দর্শনার্থীদের প্রচুর সমাগম হতে দেখা যায়। যা এখনো অব্যাহত রয়েছে।

মিনা বাজারকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা

মিনা বাজারকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা





শিপন নাথঃ- তামাকের বিজ্ঞাপন প্রচার করার অপরাধে সুপারশপ মিনা বাজারকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান ও মো. জিল্লুর রহমান নগরীর ২নং গেটের ওই সুপারশপটিতে অভিযান চালান।


জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন -২০০৫ অনুযায়ী নিষিদ্ধ হলেও তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার করে আসছিল মিনা বাজার সুপার শপ। সুপারশপটি বেনসন কোম্পানির সিগারেটের জন্য আলাদা প্রদর্শন কর্ণার স্থাপন করে। বিজ্ঞাপনের জন্য এই প্রতিষ্ঠানে বেনসন কোম্পানির দেওয়া একটি ডিসপ্লে মেশিনে সিগারেট প্রদর্শন করা হচ্ছিল।


নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান বলেন, মিনা বাজার সুপারশপে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির সিগারেটের জন্য আলাদা ডিসপ্লে কর্ণার ছিল, যেখানে তামাক কোম্পানির বিজ্ঞাপনের প্রচার হচ্ছিল। এছাড়া সেখানে ভেন্ডিং মেশিন সাদৃশ্য মেশিন দেখতে পাওয়া যায়। এর আগেও গত বছর এই সুপারশপকে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইনে একই অপরাধের জন্য জরিমানা করা হয়েছিল। একই অপরাধ দুইবার করার কারণে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০৫ অনুযায়ী সুপারশপটিকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। ভবিষ্যতে এই ধরণের ঘটনা পুনরাবৃত্তি না করার বিষয়ে সতর্ক করা হয়।


অন্যদিকে নগরীর নতুন ব্রিজ এলাকার বাস টার্মিনালে অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় এস আলম পরিবহনের একটি বাসকে ৫শ টাকা, রিলাঙ পরিবহনের একটি বাসকে ৫শ টাকা, অন্য একটি বাসকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তোমার আমার কাহিনী" শিরোনামের মিউজিক ভিডিও সোমবার রিলিজ হচ্ছে

তোমার আমার কাহিনী" শিরোনামের মিউজিক ভিডিও সোমবার রিলিজ হচ্ছে




নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নতুন একটি মিউজিক ভিডিও নিয়ে শ্রোতাদের সামনে হাজির হচ্ছে পিরোজপুরের তরুণ নির্মাতা সুমন সিকদার। 

"তোমার আমার কাহিনী" শিরোনামের গানটির মিউজিক ভিডিও আগামী সোমবার ২৪ আগস্ট বিকাল ৩ঃ৫০ মিনিটে প্রকাশিত হবে। 

এ প্রসঙ্গে সুমন সিকদার জানান,  ইতিমধ্যে "তোমার আমার কাহিনী " শিরোনামের গানটির মিউজিক ভিডিওর শুটিং এবং  এডেটিং শেষ হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন এই গানটির কাহিনী একটু ব্যতিক্রী হয়েছে। গানটির মিউজিক ভিডিওতে মডেলিং হিসেবে রয়েছে রাজ, রিদিয়া হৃদি ও শাওন সহ প্রমুখ। 


এদিকে মিউজিক ভিডিও নিয়ে অভিনেতা রাজ বললেন, বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় একটি গানে তিনি মডেল হিসেবে কাজ করতে পেরেছে বলে সুমন সিকদারকে ধন্যবাদ জানান। 

তিনি আরও বলেন, গানটি শুটিং যেদিন হয়েছে তখন প্রচুর বৃষ্টি ছিলো। বৃষ্টির মাজেও শুটিং করতে হয়েছে। সবমিলিয়ে মিউজিক ভিডিওটি ভালোই হয়েছে। 

তিনি দর্শকদের কাছে তার টীমের জন্যে দোয়া চেয়েছেন এবং দর্শকদের উৎসাহ পেলে আবারও নতুন কিছু নিয়ে হাজির হবে। 

"তোমার আমার কাহিনী"গানটির মিউজিক ভিডিও দেখতে চোখ রাখুন Smp net এর ইউটিউব চ্যানেলে।

জলবায়ু উষ্ণায়নের ফলে জলোচ্ছ্বাস থেকে সুন্দরবন রক্ষার দাবীতে মানববন্ধন

 জলবায়ু উষ্ণায়নের ফলে জলোচ্ছ্বাস থেকে সুন্দরবন রক্ষার দাবীতে মানববন্ধন




মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃ জলবায়ু উষ্ণায়নের ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পাওয়ায় জলোচ্ছ্বাসের কবল থেকে সুন্দরবনকে রক্ষার দাবীতে সুন্দরবনের করমজলে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও পশুর রিভার ওয়াটারকিপারের যৌথ আয়োজনে প্রতীকী মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। শনিবার দুপুর ১টায় প্রতীকী মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাপা বাগেরহাট জেলা কমিটির আহ্বায়ক পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মোঃ নূর আলম শেখ। মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার ইস্রাফিল বয়াতি, বাপা নেতা নাজমুল হক ও পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার মারুফ বিল্লাহ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, জলবায়ু উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে পৃথিবীর জমানো বরফখন্ড গলে সমুদ্রে যাচ্ছে। এর ফলে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে সুন্দরবনর ভিতরে অতিরিক্ত লবণ পানি প্রবেশ করছে। এতে সুন্দরবনের ভিতর এবং সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় সুপেয় পানির আধার গুলি লবণাক্ত হয়ে পড়েছে। ফলে বন্যপ্রাণীসহ মানুষের সুপেয় পানির সংকট যেমন সৃষ্টি করেছে পাশাপাশি কুমিরসহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর প্রজননে ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। সমাবেশে বক্তারা বিশ্ব নেতৃত্বের কাছে ঋণ নয় ক্ষতিপূরণ দাবী করে জলবায়ু ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠার দাবী করেন। মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা, "টাইম ফর ন্যাচার" "ক্লাইমেট জাস্টিস নাউ" "গ্রীণ রিকভারি" "গ্রিণ জবস" "সেভ দি পশুর রিভার, সেভ দি সুন্দরবন" প্রভৃতি লেখা শ্লোগান লেখা প্লাকার্ড প্রদর্শন করেন। উল্লেখ্য গত ৪০/৫০ বছরে পশুর নদী এবং সুন্দরবনের মধ্যে কোন ধরণের সিগন্যাল-ঘূর্ণিঝড় ছাড়া এতো পানি বৃদ্ধি হতে দেখা যায়নি। 


সুন্দরবনের অভ্যন্তরে অতিরিক্ত লবণ পানি প্রবেশ এবং পানি বৃদ্ধির খবরের সত্যতা স্বীকার করে করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজাদ কবির বলেন, গত ১০ বছর ধরে আমি সুন্দরবনে আছি। এর আগে সিগনাল/সতর্কতা ছাড়া এতো পানি বাড়তে দেখেনি। স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩/৪ ফুট পানি বেড়েছে গত কয়েকদিন ধরে। এতে কুমিরের ডিম পাড়ার জায়গা নষ্ট হয়ে গেছে। পাশাপাশি সুপেয় পানির আধার গুলি নষ্ট হয়েছে এবং বন্যপ্রাণীর প্রজননসহ স্বাভাবিক জীবনযাপনে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। 

বর্ণাঢ্য আয়োজনে আত্রাই দলিল লেখক সমিতির আনন্দ ভ্রমণ

 বর্ণাঢ্য আয়োজনে আত্রাই দলিল লেখক সমিতির  আনন্দ ভ্রমণ




মোঃ ফিরোজ হোসাইন রাজশাহী ব্যুরোঃবর্ণাঢ্য আয়োজনে নওগাঁর আত্রাই দলিল লেখক সমিতির আনন্দ ভ্রমণ-২০২০ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শনিবার(২২শে আগষ্ট) 

কর্মব্যস্ত জীবনে একটু বিশ্রাম তো সবারই দরকার। দরকার বিনোদন কিংবা ভ্রমণের। কেননা সকাল-সন্ধ্যা অফিস বা কাজ করে দিনশেষে ক্লান্তি এসে ভর করে। তাই একটি ছুটির দিন হয়ে ওঠে প্রতি সপ্তাহের আরাধ্য বিষয়।দেশে প্রবাদ আছে গ্রাম দেখলে যাও কলম আরও বিল দেখলে যাও চলন। ভ্রমণ "চলনবিল"আরো উপভোগ্য হয়েছে স্থান নির্বাচনের কারণে। একদিনে এর চেয়ে ভালো স্থান আর কী হতে পারে? একই দিনে নৌবিহার আবার বনভোজন। ভিন্ন মাত্রা যুক্ত করেছে নৌবিহারের বাহন হিসেবে ছিল বড় ইঞ্জিন চালিত নৌকা।আত্রাই রেলীবেড়ী ঘাট থেকে একসময়ের নজরকাড়া নৌকা  যখন উত্তর বঙ্গের তথা বাংলাদেশের বিখ্যাত বিল চলনবিলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে তখন সত্যিই আনন্দে নেচে ওঠে সবার মন। আত্রাই নদীর রেলীবেড়ী ঘাট থেকে চলনবিলের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় নৌকা ।পূর্বনির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী সকাল সাতটা থেকে আত্রাই দলিল লেখক সমিতি চত্বরে  উপস্থিত হতে থাকেন দলিল লেখক সমিতি পরিবারের সদস্যরা। আবু হেনা মোস্তফা কামালের তত্ত্বাবধায়নে সবাইকে সকালের নাস্তা সরবরাহ করা হয়।সবার উপস্থিতি নিশ্চিত করে লঞ্চ ছাড়ার অনুমতি দেন।


 নৌকা ভ্রমণ ২০২০ আত্রাই দলিল লেখক সমিতি লেখা সম্বলিত টি-শার্ট প্রদান করা হয়।নৌকা তখন আত্রাই রেলীবেড়ী ঘাটের হৈচৈ পেরিয়ে খানিকটা এগিয়েছে। যাত্রার শুরুতেই সাউন্ড সিস্টেমে বেজে ওঠে দেশাত্মবোধক গান। গানে গানে স্মরণ করা হয় একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের। গানের সুরে সুরে ঢেউয়ের তালে তালে নৌকা এগিয়ে চলে আত্রাই নদীর বুক চিড়ে।জীবনে  যারা প্রথম নৌকা ভ্রমণ করছেন; তাদের আনন্দের আর অন্ত নেই। উচ্ছ্বাসে কখনো নাচছেন। আবার কখনো গেয়ে উঠছেন প্রিয় কোনো গান। সারা বছরের ক্লান্তি ঝেরে সবাই যেন কেমন চঞ্চল হয়ে উঠেছেন।  নাচে-গানে মেতে ওঠেন সবাই। সাংস্কৃতিক পর্বে  কাওসার,হামিদ সরকার, মিলন, সহ আরো অনেকের পরিবেশনা দিনভর চাঙা রেখেছে সবাইকে।হাসি-আনন্দে ধীরে ধীরে এগিয়ে যেতে থাকে নৌকা । অনেক আনন্দ উল্লাসে চলতে থাকে ফটোসেশন ও সেলফিযজ্ঞ। ক্যামেরায় তৎপর ছিলেন আল আমিন ও রনি । আত্রাই নদীর উপর নির্মিত সিংড়া ব্রীজ পর্যটন এলাকায় নোঙর করে নৌকাটি। একটু সময়ের বিরতিতে। 


দেখতে দেখতে দুপুর একটা নাগাদ নৌকাটি নোঙর করে চলনবিল এলাকায়। নৌকা চলছে চলনবিলের ঐতিহ্য মাখা গন্তব্যে। সবাই হৈ হৈ করে নেমে পড়েন। বালসা,নাটোর পিকনিক স্পটে । কিছুটা পথ হেঁটেই ঘুরে দেখা হয় পর্যটন এলাকা। একদিনে ভ্রমণের। একইসঙ্গে পাওয়া গেল দুই রকম আনন্দ। পানির সঙ্গে তাল মিলিয়ে পৌঁছে গেলাম গন্তব্যে। প্রকৃতি ও নদীর সংস্পর্শে মন হয়ে উঠল আনমনা। নদীপথে আসতে আসতে যেন পানির সঙ্গে মিতালি হয়ে গেল। বহুদিন পর পেলাম নৌকা ভ্রমণের মজাও। একই সঙ্গে নৌবিহার এবং বনভোজন।

বিলাসবাজার, বালসা,নাটোরের একটি গ্রাম জায়গাটি চলনবিল  বুকে জেগে ওঠা চর বা দ্বীপ,নাম স্বর্ণদ্বীপ।  নাটোর জেলা সহ পাবনা,সিরাজগঞ্জ মিলে ঐতিহ্যবাহী চলনবিল । বর্তমানে  বর্ষা মৌসুম সবাই খানে পানিতে থৈথৈ। যত দুরে চোখ যায় শুধু থৈথৈ জলরাশি। দিগন্ত জোড়া মাঠ শুধু পানির তালে ঢেউয়ের নাচন। বিলের মধ্যে গড়ে উঠেছে পর্যটন কেন্দ্র।  বিশ্রামের জন্য রয়েছে একটি ছাউনি। খাবারের জন্য রয়েছে আলাদা বিশাল ঘর।নাম স্বর্ণদ্বীপ কফি হাউজ।ঘুরে জলরাশি দেখার জন্য আছে ছোট ছোট স্পিড বোট,ও গ্রীণল্যান্ড কফি হাউজ। পর্যটন এলাকায় অভ্যাস থাকলে সাঁতারও কাটা যেত।সেখানে থাকার কোনো ব্যবস্থা নেই। একদিনের ভ্রমণের জন্যই স্থানটি উপযুক্ত। খাবারের আয়োজনও নিজেদেরই করতে হয়েছে। আগে থেকেই খাবারের যাবতীয় বন্দোবস্ত করেই রেখেছিলেন।।দুপুরের খাবার শেষে আবারও নৌকা  নিয়ে ছুটে চলা। সবার উপস্থিতি নিশ্চিত করে আবার আত্রাইয়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা। নৌকা ছাড়ার পর চলে ঠান্ডা পানি ও শুকনো খাবার পর্ব।আনন্দ উল্লাস বিনোদনের ধারাবাহিকতায় বিল পেরিয়ে নদী পথের দুই কুলের সবুজ সমাহারে দৃষ্টি নন্দিত উচ্ছ্বসে কেটে যায় অনেক সময়।বিকেল গড়িয়ে এখন সন্ধ্যার আলো আধাঁরের বুক চিরে ছুটে চলা ।  ততক্ষণে নৌকা আত্রাই নদীর ঘাট ছুঁই ছুঁই। সবাই যার যার ব্যাগ গোছানোর ব্যস্ততা সেরে নেমে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হলেন ও সবার বাড়ী ফেরার শেষ মুহুর্ত ।একদিনের ভ্রমণে অনেক স্মৃতি অনেক ভালোবাসা বুকে নিয়ে বাসায় ফিরবেন সবাই। পুরো যাত্রাপথেই আনন্দ বাড়াতে সার্বিক বিষয়ে সুদৃষ্টি রেখেছেন মোফাজ্জল হোসেন সন্দেশ  এবং সাখাওয়াৎ জাহান নয়ন।আগামী বছর এমন সুখময় ভ্রমণের সাক্ষী হওয়ার প্রত্যাশায় চাতকের মতো দৃষ্টি নিয়ে আলো-আঁধারীর শরীর ঘেঁষে সবাই ফিরে গেলেন গন্তব্যে।

সর্বাবস্থায় আমি আপনাদের পাশে আছি, থাকবো – প্রতিমন্ত্রী পলক

 সর্বাবস্থায় আমি  আপনাদের পাশে আছি, থাকবো – প্রতিমন্ত্রী পলক


রাজশাহী ব্যুরোঃ

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন,

বিগত সকল দুর্যোগে আমি আপনাদের পাশে থেকে কাজ করেছি। জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ হতে মানবিক সহায়তা প্রদান করেছি। আপনাদের 

 ভালোবাসা নিয়ে আমি বারবার নির্বাচিত হয়েছি।বেচেথাকা পর্যন্ত  আপনাদের সেবা করতে চাই। সুখে, দুংখে সর্ব অবস্থায়  আপনাদের পাশে আছি, থাকবো। কর্মহীন পরিবারকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহায়তা প্রদান করেছেন। ভয়াবহ বন্যা ও করোনায় মধ্য বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকরা ঘরে বসে থাকেনি। দ্বারে দ্বারে গিয়ে সহায়তা প্রদান করেছে।

শনিবার সিংড়া পৌর এলাকার গাইনপাড়া, পারসিংড়া এবং পল্লী শ্রী এলাকায় তিনি চায়না রেইলওয়ে ইন্টারন্যাশনাল গ্রুপ এর পক্ষ হতে ১ হাজার বন্যার্ত পরিবারকে ত্রান বিতরন এবং ব্যক্তিগত ভাবে ৫শ শিশু কে শিশু খাদ্য বিতরন ও ৫ শ বন্যার্ত পরিবারকে চাল, ডালসহ খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন।


এসময় উপস্থিত ছিলেন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক, সিংড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব জান্নাতুল ফেরদৌস, চায়না রেইলওয়ে ইন্টারন্যাশনাল গ্রুপের কি ব্যবস্থাপনা ম্যানেজার আবু কাওসার, সাইট প্রকৌশলী আসিফ আহমেদ চৌধুরী, , মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ, জেলা পরিষদ সদস্য সাজ্জাদ হোসেন, রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সভাপতি মেহেদী হাসান রনি,উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন, প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের সহকারী ব্যক্তিগত কর্মকর্তা রনজিৎ কুমার, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আল আমিন সরকার, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুল আওয়াল প্রমুখ।

শিশু খাদ্য হিসেবে সুজি, দুধ, চিনি, বিস্কুট এবং ত্রান হিসেবে চাল, ডাল বিতরন করা হয়।

সাতক্ষীরায় লাশ নিয়ে ফেরার পথে ইঞ্জিনভ্যান চালক আহত

 সাতক্ষীরায় লাশ নিয়ে ফেরার পথে ইঞ্জিনভ্যান চালক আহত




আজহারুল ইসলাম সাদী, জেলা প্রতিনিধিঃ


সাতক্ষীরা থেকে পোস্টমর্টেম করা লাশ নিয়ে শ্যামনগর ফেরার সময় পরিবহনের ধাক্কায় আহত হয়েছে লাশবহনকারী ইঞ্জিনভ্যানের চালক। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (২১ আগস্ট) বিকেল পৌনে ৫ টার দিকে, কালিগঞ্জ-শ্যামনগর সড়কের রায়পুর নামক স্থানে।


স্থানীয় সূত্রে জানায়, শ্যামনগরের নীলডুমুরে অবস্থিত রেডিয়ান্ট হ্যাচারীতে কর্মরত মুন্সীগঞ্জ এলাকার মতিয়ার রহমানের মেয়ে হামিদা খাতুন (২৮) বৃহস্পতিবার বিষপানে আত্মহত্যা করেন।


তার লাশ পোস্টমর্টেমের জন্য সাতক্ষীরায় পাঠায় শ্যামনগর থানা পুলিশ। পোস্টমর্টেম শেষে ইঞ্জিনভ্যানে লাশ নিয়ে সাতক্ষীরা থেকে শ্যামনগর ফেরার  সময় রায়পুর নামক স্থানে পৌছালে শ্যামনগরগামী মামুন পরিবহনের সাথে ওই ইঞ্জিনভ্যানের ধাক্কা লাগে। এ ঘটনায় লাশসহ ইঞ্জিন ভ্যানটি সড়কের পাশে পড়ে যায়। স্থানীয় জনতা আহত ভ্যান চালক আব্দুল জলিলকে (৪৯) কে উদ্ধার করে  চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।

সরকারি রাস্তা ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহারে পানি বন্দি কয়েকটি পরিবার

 সরকারি রাস্তা ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহারে পানি বন্দি কয়েকটি পরিবার


 


মোরশেদ আলম 

যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধিঃ

যশোর কেশবপুরের হাড়িয়াঘোপে টানা কয়েকদিনের  বৃষ্টির কারনে গ্রামের কয়েকটি সংখ্য লঘু পরিবার সহ পানি বন্দি কয়েশ মানুষ। জানাগেছে উপজেলার হাঁড়িয়াঘোপ গ্রামের সরকারি রাস্তার  জমি দখল করে ঘের  সবজি চাষ সহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করার কারণে এই  জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। স্থানিয় এক জন প্রত্যক্ষদর্শী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যক্তি  জানান এই পানিটি র্দীঘদিন যাবৎ সামাদ খাঁর বাড়ির পাশ দিয়ে শুলা কুড় নামক স্থানে বের হয়ে যেত। কিন্তুু বর্তমানে সেটি রাজনৈতিক নাম ভাঙ্গিয়ে জলিল  নামক এক ব্যক্তি পানি যাওয়ার সেই পথটি বর্তমান বন্দ করে দিয়েছে যার কারনে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। সরকারি রাস্তার উপর পানি বেধে যাওয়ার কারণে কাচা মাল তরি তরকারি সবজি সহ মাছ ইত্যদি নিয়ে যেতে পারছে না এই এলাকার সাধারণ কৃষকরা।এলাকার কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তির কারনে রাস্তটি বিভিন্ন ভাবে আটকিয়ে রেখেছে যার কারণে এই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তাদিয়ে প্রতিদিন ডাক্তার দেখানোর জন্য শত শত  মানুষ ডা. কামরুজ্জামানের বাড়ি যাই কিন্তু রাস্তায় পানি উঠার কারণে সেটি ব্যাহত হচ্ছে ফলে  ভোগান্তিতে পড়েছে বাইরে থেকে আসা অনেক রোগী। স্থানীয় ভাবে গত ৮ ই আগস্ট শনিবার  সন্ধ্যায় জসিমের দোকানে বসে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া মনি ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা এস,এম মহব্বত হোসেন এর নেতৃত্বে স্থানিয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে সমস্য নিরাসনের জন্য চেষ্টা করছে তারা এবং উপস্থিতিত আরো অনেক গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সাথে ছিল তাদের কিন্তুু শেষ পর্যান্ত কোন ফয়সালা এখনও হয়নি। তবে তারা মনে করেন যদি আমিন দিয়ে রাস্তার সিমানা বের করা যাই তাহলে এই পানি নিস্কষন করা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন তারা।সকল অবৈধ বাঁধ উঠেয়ে দিয়ে দখল মুক্ত করলে পুনরায় পানির প্রবেশ উন্মুক্ত হবে বলে মনে করেন এলাকার ভুক্তভুগি মহল। কিন্তুু এই জলাবদ্ধতাকে কেন্দ্র করে এক শ্রেনীর স্বার্থনেশী মহল রাজনৈতিক ফয়দা লুটছে বলে জানান ঐ ব্যক্তি তিনি আরো বলেন অনেকে আবার বি,এন,পি রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থেকেও নতুন করে আওয়ামীলীগের লেবাস লাগানোর জন্য স্থানিয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের সাথে মিশে নানান রকম ফন্দি ফিকির করছে এবং জটিলতা সৃষ্টি করছে বলে জানাগেছে । তবে এই পানি অতি দ্রুত যদি নিস্কাষন করা না যাই তাহলে এই এলাকাটি সহ বহুল কষ্টে নির্মিত এই সড়কটি নষ্ট হয়ে যেতে পারে বলে মনে করেন এলাকার ভুক্তভোগীরা। তাই প্রশাসনের কাছে অফমর জনগণের প্রানের এই রাস্তাটির উপর থেকে রাজনৈতিক প্রভাব খাটানো বন্দ করে সঠিক তদন্ত করে এই কৃতিম জলাবদ্ধ্যতা দুর করে এলাকার মানুষের পানির অভিশাপ থেকে মুক্ত করার জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকার সুধিজন।


বন্যার্তদের মাঝে বেগম শিরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার পৃষ্ঠপোষক মাসুদুর রহমানের ত্রাণ বিতরণ

বন্যার্তদের মাঝে বেগম শিরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার পৃষ্ঠপোষক মাসুদুর রহমানের ত্রাণ বিতরণ



 


ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের নগরকান্দাস্থ আলহাজ্ব আকবর হোসেন মিয়ার পরিবার ও বেগম শিরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে মঙ্গলবার দৈনিক খোলাচোখ কার্যালয়ে বন্যার্ত পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে । বন্যা প্রাদুর্ভাবের কারণে গৃহবন্দী হয়ে পড়া অসহায় মানুষের মাঝে এ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।


উল্লেখ, বেগম শিরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার পৃষ্ঠপোষক মাসুদুর রহমান নগরকান্দা পৌর এলাকার অসহায় দুস্থ মানুষের মাঝে নিয়মিতই এ ধরনের কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন।

সংস্থার সভাপতি ও দৈনিক খোলাচোখ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মাহবুব আহাদ জানান, তার মা মরহুমা শিরিয়া বেগমের নামে গড়ে তোলা সংস্থার মাধ্যমে প্রতিনিয়তই নগরকান্দা পৌর এলাকার দুস্থ ও অসহায় মানুষের পাশে আছেন। এটি তাদের পারিবারিক সংগঠন । এরই ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবে মঙ্গলবার পৌর এলাকার অসহায় দুস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ফরিদপুরে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার!

ফরিদপুরে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার!



ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ ২১/৮/২০ রাত ৮ টায় নগরকান্দা উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের, সাদীপুর হাইওয়ে রোডের পাশে হাত পা বাঁধা, অবস্থায় এই অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে, নগরকান্দা থানা পুলিশ, তার পেটের উপর কালো একটি আঁচিল রয়েছে। পুলিশের ধারণা গাড়ি থেকে মেরে কেউ ফেলে যেতে পারে,  যদি কেউ চিনেন দয়া করে নগরকান্দা থানায় যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হইলো।

আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে গ্রেনেড হামলা করা হয়েছে : রেজাউল করিম চৌধুরী

আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে গ্রেনেড হামলা করা হয়েছে :  রেজাউল করিম চৌধুরী

 



 রিয়াজুল করিম রিজভী চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধানঃ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। এতে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী নারী নেত্রী আইভী রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। প্রতিবারের মতো এবারো যথাযোগ্য মর্যাদায় ২১ আগষ্ট শুক্রবার সেই বিভীষিকাময় গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে চট্টগ্রাম নগরীর ১২নং সরাইপাড়া ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও মহিউদ্দিন চৌধুরী ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায়  চিকিৎসা ক্যাম্প উদ্বোধন করা হয়।   এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও চসিক নির্বাচনের আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী।  স্মরণ সভায় রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করার জন্যই তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে ২১ আগস্ট ঢাকায় আওয়ামী লীগের জনসমাবেশে পরিকল্পিতভাবে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। হামলাকারীদের লক্ষ্য ছিল আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার মাধ্যমে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করে দেয়া। কিন্তু সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে সেদিন শেখ হাসিনা অলৌকিকভাবে বেঁচে যান। সেই নারকীয় হত্যাকান্ডে মহিলা নেত্রী আইভি রহমানসহ আওয়ামী লীগের ২৪...

করোনা পজিটিভ ঝিকরগাছার তথ্য

করোনা পজিটিভ ঝিকরগাছার তথ্য




স্বাস্থ্য ডেস্কঃ 

১. নাসিমুল হাবিব শিপার (৫০ বছর)

   ওয়ার্ড - ০৩

২. মিজানুর রহমান (৫৪ বছর) 

  গদখালি ইউনিয়ন 

৩. আব্দুল হাই (৩৮ বচ্ছর) 

  গদখালি ইউনিয়ন 

৪. শহর বানু (৬০ বছর) 

  পানিসারা ইউনিয়ন 

৫. রওশন আলি (৭০ বছর) 

  হাজিরালী, ঝিকরগাছা, ওয়ার্ড - ০৯

৬. ইতিহাদ ইমাম (৬ বছর) 

  ওয়ার্ড - ০৩ 

৭. ফিরোজ হোসাইন (৩৪ বছর) 

  নির্বাসখোলা 

৮. নজরুল ইসলাম (৫৮ বছর) 

  আরবপুর

৯. সুভাস চন্দ্র ভক্ত (৬৩ বছর) 

  পটুয়াপাড়া গদখালি 

১০. তাসলিমা খাতুন (৩৬ বছর) 

  হরিদ্রাপোতা, শংকরপুর

১১. সিদ্দিক হোসাইন (৫৯ বছর) 

  ওয়ার্ড - ০৩

১২. শরিফুল ইসলাম (৪৬ বছর) 

  ওয়ার্ড - ০৫

মধুপুরে ফুটবল প্রীতি ম্যাচের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

 মধুপুরে ফুটবল প্রীতি ম্যাচের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত



মো: আ: হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃটাঙ্গাইলের মধুপুর নেদুর বাজার স্পোর্টিং ক্লাবের উদ্যোগে এক ফুটবল প্রীতি ম্যাচের ফাইনাল খেলা নেদুর বাজার উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার(২১ আগষ্ট) বিকেলে উক্ত ফুটবল খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- প্রেসক্লাব মধুপুর এর সাধারণ সম্পাদক বাবুল রানা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- স্বপন সরকার( বিশিষ্ট ব্যবসায়ী) ময়মনসিংহ। মতিয়ার রহমান সাংবাদিক চ্যানেল সেভেন্টিন ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। খেলা পরিচালনা করেন মোঃ আলতাফ হোসেন।

একটা থেরপি বাঁচাবে জবি শিক্ষার্থীর বাবাকে

একটা থেরপি বাঁচাবে জবি শিক্ষার্থীর বাবাকে




জবি প্রতিনিধিঃ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তরুণ সাহার বাবা তাপস সাহা দীর্ঘদিন যাবৎ মুত্রথলির ক্যান্সারে আক্রান্ত রয়েছেন। ৫ টি কেমোথেরাপি সম্পন্ন করা হলেও শেষ ১টি কেমোথেরাপি অর্থের অভাবে আটকে রয়েছে। থেরাপির জন্য প্রয়োজন প্রায় ২৫,০০০ টাকা। 


পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, তরূণ সাহা ঢাকায় টিউশনি করে চলেন। তাদের ৪ সদস্যবিশিষ্ট পরিবার। তরুণ তার নিজের খরচে পড়াশুনা করে। তার বাবার একটি ছোট দোকান রয়েছে। এই দোকানের মধ্যমেই তাদের সংসার পরিচালিত হতো। এখন তার বাবার এ অবস্থায় দুশ্চিন্তায় পড়ে গেছে তরুণ সহ তার পুরো পরিবার।


তরুণ সাহার সাথে কথা বলে জানা যায়, তার বাবা তাপস সাহা গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকেই অসুস্থ ছিলেন। ঢাকায় চিকিৎসা দেয়ার পরও সুস্থ না হওয়ায় তার বাবাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসার পর ঢাকায় এনে কেমোথেরাপি দেয়া হয়। এখন পর্যন্ত ৫ টি থেরাপি সম্পন্ন করা হয়েছে। কিন্তু অর্থের সংকটের জন্য শেষ থেরাপি টি প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না।


তরুণ সাহা তার বাবাকে বাঁচাতে সকলের কাছে অনুরোধ করে বলেন, আমার বাবা একজন সৎ নিষ্ঠাবান বাক্তি। গত ৭ মাস আগে ওনার মুত্রথলিতে Cancer ধরা পরে। তার চিকিৎসা ব্যয় বাবদ প্রচুর  টাকা খরচ হয়ে গিয়েছে। একটা মধ্যবিত্ত পরিবার, আর এতো টাকা অনেক বড় একটা বিষয়। আমাদের পরিবারে আয় করার আর কেউ নেই । আয় করার মানুষটা রোগে ভুগছে। এখনো বাবার শেষ কেমোথেরাপির জন্য প্রায় ২৫,০০০ টাকার প্রয়োজন। করোনার এ সময়ে কোথাও থেকে টাকা জোগাড় করতে পারছি না। জানি না আর কেমোথেরাপি দিতে পারব কিনা।


তরুণ সাহা আরো বলেন, অভাবের সংসারে বাবার চিকিৎসার জন্য বাড়ির শেষ সম্বলটুকু ও বিক্রি করে দিয়েছি। আমি আপনাদের কাছে আমার বাবার চিকিৎসার জন্য সাহায্য চাই। আপনারা সকলে সহযোগিতা করলে আমি আমার বাবাকে আবার বাবা বলে ডাকতে পারবো। আমার বাবার কিছু হলে আমাকে আমার পরিবারের হাল ধরতে হবে। আমার পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যাবে। এমতাবস্থায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য মহোদয় ও সমাজের বিত্তশালীদের সাহায্য ছাড়া বাবার চিকিৎসা করানো সম্ভব না। এখন আপনাদের সাহায্যই আমার বাবার চিকিৎসার শেষ ভরসা।


যোগাযোগঃ

তরুন সাহা

01725556529

সাহায্য পাঠাতেঃ

01725556529 (বিকাশ)

2671050002153 (Duch bangla bank a/c)

শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন

শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন





সম্রাট হোসেন,শৈলকুপা উপজেলা ( ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃ

ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। দীর্ঘ  ১০ বছর পর যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটিতে শৈলকুপা উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু জাহিদ চৌধুরী কে আহাব্বায়ক এবং ১৫ নং ফুলহরি ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ জমির উদ্দিন কে সদস্য সচিব করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে এই কমিটিকে পেয়ে দীর্ঘদিন পর শৈলকুপা উপজেলা যুবদল এরমধ্যে কর্মচাঞ্চল্যতা ফিরে এসেছে।  নির্যাতিত ও দলের ত্যাগী নেতাদের দিয়ে কমিটি উপহার দেওয়ার জন্য, বি এন পির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম নিরব ও সাধারণ সম্পাদক  সুলতান সালাউদ্দীন টুকু এবং ঝিনাইদহ জেলা যুবদলের সভাপতি আহসান হাবিব রনক এবং ঝিনাইদহ জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম পিন্টু ভাই কে শৈলকুপার উপজেলা যুবদলের সকল নেতাকর্মীর পক্ষ  থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছে, শৈলকুপা উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব  মোঃ জমির উদ্দিন

কুমিল্লার মুরাদনগরে ২১ আগস্ট গ্রনেড হামলার প্রতিবাদে সভা ও শোক র্্যালি

কুমিল্লার মুরাদনগরে ২১ আগস্ট গ্রনেড হামলার প্রতিবাদে সভা ও শোক র্্যালি



শাহ আলম জাহাঙ্গীর

ব্যুরো চিফ, কুমিল্লা



কুমিল্লার মুরাদনগরে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে ও নিহত সব শহীদের স্মরণে দোয়া, আলোচনা সভা এবং শোক র‌্যালি করেছে মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গসংগঠন।


শুক্রবার বিকালে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক রুহুল আমিনের সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ম. রুহুল আমিন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টার। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুরাদনগর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ তমাল, ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন, কাজী আবুল খায়ের, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সরকার, জেলা পরিষদ সদস্য ভিপি জাকির হোসেন, কুমিল্লা উত্তর জেলা শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি আহসান হাবীব শামীম, কুমিল্লা উত্তর জেলা কৃষক লীগের সদস্য আক্তার হোসেন, মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম শাহেদ।


এ সময় উপস্থিত ছিলেন- ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, আব্দুল কাইয়ুম, জেলা পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম, কুমিল্লা উত্তর জেলা কৃষক লীগের সদস্য হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, মুরাদনগর উপজেলা যুবলীগের সদস্য রাজন আহম্মেদ রাজু, মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক ফয়সাল আহম্মেদ নাহিদ, বাঙ্গরা বাজার ছাত্রলীগের আহবায়ক আবুল কালাম প্রমুখ।


বক্তারা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যারা পলাতক রয়েছে তাদের দ্রুত দেশে এনে রায় কার্যকর করার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান।

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত “সেকায়েপ” প্রকল্পে কর্মরত অতিরিক্ত শ্রেণি শিক্ষকগণ

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত “সেকায়েপ” প্রকল্পে কর্মরত অতিরিক্ত শ্রেণি শিক্ষকগণ




স্টাফ ডেক্স:

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী

যথাবিহীত সম্মান পূর্বক বিনীত নিবেদন, আমরা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় অধীন “সেকেন্ডারি এডুকেশন কোয়ালিটি অ্যান্ড অ্যাকসেস এনহান্সমেন্ট প্রজেক্ট (সেকায়েপ)” কর্তৃক ৬১ জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে এমপিও ভুক্ত, নন-এমপিও ভুক্ত এবং সরকারি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রায় ৫,২০০ (পাঁচ হাজার দুইশত) জন বিষয়ভিত্তিক (ইংরেজি, গণিত ও বিজ্ঞান) অতিরিক্ত শ্রেণি শিক্ষক (এসিটি)। আপনার সদয় অবগতি ও কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের লক্ষ্যে জানাচ্ছি যে, বিশ্ব ব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে ২০০৮ সালে চালু হওয়া সেকায়েপ প্রকল্পে; ২০১৫ সালে উল্লেখযোগ্য একটি কম্পোনেন্ট “অতিরিক্ত শ্রেণি শিক্ষক (এসিটি)” যুক্ত হয়। এসিটি কর্তৃক নিয়মিত ক্লাসের বাইরে তিন বিষয়ে মোট ৩৭,২০,০৯৪ টি অতিরিক্ত ক্লাস নেওয়া হয়। ফলে প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার্থীদের ইংরেজি, গণিত ও বিজ্ঞান বিষয়ে ভীতি দূর করে আধুনিক, সৃজনশীল এবং বিজ্ঞানসম্মতভাবে পড়াশোনার মানোন্নয়নের পাশাপাশি পাবলিক পরীক্ষা গুলোতে ভালো ফলাফল অর্জিত হয়; এই উদ্দেশ্য পুরোপুরি সফল বলা যায়। সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে স্ব-স্ব উপজেলায় শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধ, কোচিং বাণিজ্য হ্রাস, বাল্য বিবাহ রোধ, দেশপ্রেম, শিক্ষার্থীদের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সৃষ্টি, পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ পরবর্তী প্রজন্মকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ার পাশাপাশি উচ্চশিক্ষিত এবং আইসিটিতে দক্ষ এসিটিগণ “ডিজিটাল বাংলাদেশ” গঠনে বাংলাদেশ সরকারের সরাসরি তত্ত্বাবধায়নে পরিচালিত “মাল্টিমিডিয়া ক্লাস ব্যবস্থা”র সফল প্রয়োগের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শ্রেণিমূখী করছে। সর্বোপরি, শিক্ষাখাতে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে।


সেকায়েপ শিক্ষকদের চাকুরির মেয়াদ তিন বছর হলেও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি এবং এসিটি অপারেশন ম্যানুয়াল- ২০১৫ এর ৩৬নং ধারানুযায়ী শিক্ষার মানোন্নয়নের অভিজ্ঞতা এবং কোয়ালিটি বিবেচনা করে উল্লেখ আছে এসিটিদের স্থায়ীকরণের কথা। আমরা ইতোমধ্যে সকল জেলা থেকে আপনার সু-দৃষ্টি কামনায় মাননীয় মন্ত্রী, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, মাননীয় এমপি ও জেলা প্রশাসক মহোদয়ের মাধ্যমে স্থায়ীকরণের জন্য স্বারক লিপি পাঠিয়েছি।


প্রতিনিধিকে জানান, যশোর জেলার পক্ষে রাকিব আহম্মাদ সোহেল ও মোঃ রাসেল হেসোনের তত্বাবধানে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের মাধ্যমে স্থায়ীকরণের জন্য স্বারক লিপি পাঠিয়েছি।


আপনি জেনে আনন্দিত হবেন যে, ইতোমধ্যে বিশ্ব ব্যাংক মত প্রকাশ করেছে, সেকায়েপ প্রকল্পের এসিটি কম্পোনেন্ট দারুণভাবে সফল। সেকায়েপ কর্তৃপক্ষ ডিসেম্বর, ২০১৭ সালে প্রকল্পভুক্ত সকল এসিটিকে শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে পরবর্তী গভঃমেন্ট অর্ডার (এ.ঙ) না আসা পর্যন্ত স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানে ক্লাস চালিয়ে যাওয়ার লিখিত নির্দেশনা প্রদান করেছিলেন এবং এ ব্যাপারে স্থায়ীকরণের জন্য মন্ত্রণালয়ে সুপারিশপত্র পাঠানো হয়েছে। কিন্তু, বিগত ৩১ মাসেও সেই গভঃমেন্ট অর্ডারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি এবং সেকায়েপ প্রকল্প শেষে এসিটিদের স্থায়ীকরণে সুস্পষ্ট কোন লিখিত নির্দেশনা আসেনি। এমতাবস্থায়, আমরা প্রতিনিয়ত আর্থিক, সামাজিক ও পারিবারিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হচ্ছি। উল্লেখ্য, কর্মরত এসিটিদের সিংহভাগ দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরধারী।


কর্মরত এসিটিদের এসইডিপিতে অন্তর্ভূক্ত করলে সরকারের সুবিধাসমূহ:

১। নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত এসিটিদের তুলনায়; কর্মরত প্রশিক্ষত ও অভিজ্ঞ এসিটিরা কাঙ্খিত ফলাফল অর্জনে শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

২। বর্তমান সরকারের লক্ষ্য বেকারত্ব শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনা। নতুন করে কাউকে চাকুরিচ্যুতকরণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হবে।

৩। গুণগত শিক্ষা নিশ্চিতকরণে সরকারের প্রতি জনগণের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন ঘটবে।


মানবতার মা

আমরা দেশের উন্নয়নের একটা ক্ষুদ্র অংশ হতে চাই। আমরা বিনীত প্রার্থনা করছি, অন্যান্য শিক্ষা প্রকল্পের মতো সেকায়েপ প্রকল্পে এসিটিদের মাধ্যমিক পর্যায়ে বিশেষ অবদান ও মানবিক- দিক বিবেচনা করে বিনা শর্তে দ্রুত এসইডিপি প্রোগ্রামে নেয়া হোক। তাই, আমাদের বিনীত প্রার্থনা, আপনার ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপে মানবিক দিক বিবেচনাপূর্বক মাধ্যমিক শিক্ষাকে মানসম্মত ও যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে প্রায় ৫,২০০ (পাঁচ হাজার দুইশত) জন তরুণ মেধাবী মডেল এসিটিদের এসইডিপিতে অন্তর্ভূক্ত করা হলে উপকৃত হবে দেশ এবং উন্মোচিত হবে গুণগত শিক্ষার এক নতুন দিগন্ত।


আপনি মানবিক দিক বিবেচনা করে আমাদের সহায়তা করলে চিরকৃতজ্ঞ হবো।


বিনীত

সকল জেলায় কর্মরত এসিটিবৃন্দের

মহম্মদপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান-ইউএনওর হস্তক্ষেপে ৮০ বছরের জলাবদ্ধতার নিরসন

 মহম্মদপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান-ইউএনওর হস্তক্ষেপে ৮০ বছরের জলাবদ্ধতার নিরসন




মো:কুতুবুল আলম,

মহম্মদপুর(মাগুরা)

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার নহাটা ইউনিয়নের বেজড়া-নারান্দিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ আশপাশের বাড়ি ঘরের স্থায়ী জলাবদ্ধতার নিরসন করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আবু আব্দুল্লাহেল কাফি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান।

শুক্রবার সকাল ১১টায় সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় জলাবদ্ধতার নিরসন করা হয়।


এলাকাবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে উপজেলা চেয়ারম্যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উপজেলা প্রথমিক শিক্ষা অফিসার নুর মোহাম্মাদ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মোমিনুল ইসলাম সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ওয়াসিমুজ্জান ও ওয়াহিদুজ্জামান জনতা ব্যাংক মহম্মদপুর  শাখা ব্যাবস্থাপক  সহ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি বিপ্লব রেজা বিকো সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুন নবী প্রচার সম্পাদক রাসেল পারভেজ দপ্তর সম্পাদক মাসুদ রানা কোষাধ্যক্ষ জালাল উদ্দিন হাক্কানী সহ আরও অনেকে জলাবদ্ধ এলাকা পরিদর্শনে যান। 


এসময় বেজড়া-নারান্দিয়ার অন্তত দুইশত মানুষ উপস্থিত ছিলেন।


দীর্ঘ ৮০ বছরের অপেক্ষার অবসান হতে যাওয়া উৎসুক জনতার বক্তব্য শুনে, পানি নিস্কাশন কিভাবে করা সম্ভব হবে,  পানি কোথায় দিয়ে যাবে, বিভিন্ন মানুষের মতামত শেষে গ্রামবাসীদের সাথে নিয়ে কাঁদা পানির মধ্যে দিয়ে প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকা পরিদর্শণ শেষে স্থানীদের সহায়তায় পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করা হয়।


এসময় স্থানীয় নহাটা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আলি মিয়া,   ইউপি সদস্য  ফিরোজ হোসেন, নহাটা ইউনিয়ন ডেবোলপমেন্ট সোসাইটি'র (NUDS) সদস্যবৃন্দ ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


দীর্ঘ ৮০ বছরের জলাবদ্ধতা নিরসনে ভুমিকা রাখায় স্থানীয়রা উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাহী কর্মকর্তা সহ সকলকে এলাকাবাসী কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।