করোনার অজুহাত ও অটোপাশ : সরোয়ার জাহান

লেখা পড়ার মান বাড়ছে
পড়ছে গরু বই
পড়ার টেবিল ঠিক ই আছে
ছাত্র গেল কই,,,

মা বাবারা ফোন টা রাখতো
ছেলে মেয়েদের দুরে
এখন দেখছি সে বিষয় টা
দাঁড়িয়ে গেছে ঘুরে,,,

বানান টানান ভুলে যাবে
ছেলে মেয়েরা আজ
যার বাবার নেই মেবাইল
সে করছে কাজ,,,,

সকাল থেকে রাত অবদি
পড়ছে কম ছাত্র
পিতা মাতারা কেউ দেখছে
মেয়ের জন্য পাত্র,,,

একটা বছর পার করছে
করেনার খেলা দেখে
মাল মেডিসিন মেয়েরা যেন
মরছে মেখে মেখে,,,

ছোট বাবুরা যা শিখিলো 
গিয়েছে সবই ভুলে
ঘরে বসে বাবার ফোনে
খেলা করছে যে মন খুলে,,,

করোনা করোনা করে মানুষ 
বেকার হয়েছে বেশ
কেউবা আবার জমানো টাকা
কেয়ে করেছে শেষ,,,, 

মাস গেল বছর গেল
স্কুল আছে বন্ধ
এখন দেখছি আগের মত
চোখ থাকতে হবে অন্ধ,,,

বড় লোকেরা খেয়ে খেয়ে
বানাচ্ছে পেট মোটা
গরীব মানুষ তিন বেলা ভাই
খাচ্ছে যে ডাউল ঘোটা,,,,

করোনার দোহায় অনেকে দিয়ে
রিপোর্ট বেচেছে বেশ
কেউবা আবার টাকার লোভে
জীবন করেছে শেষ,,,,

অটো পাশের ছাত্র ছাত্রী 
সব হয়েছে এক
পঁচা ছাত্রটাও বলছে এখন
আমার রেজাল্ট দেখ,,,

চাকরীর বেলায় কি হবে ভাই
অটো পাশের বেলা
কেউ বা আবার পাশটা করে
বাগানে করছে তাস খেলা,,,

লেখা পড়া চালু রাখতে
স্কুল খুলতে হবে
না হলে ভাই ছেলে মেয়েরা
পাগল হয়ে রবে,,,

সবার আগে লেখা পড়াটা 
থাকে সবার মাঝে
সবার প্রাণে আবার যেন
জাতীয় সংগীত বাজে,,,

অনেক দিন হয়ে গেল
চালু হোক লেখা পড়া
আবার যেন হয় সম্ভব
ভাল মানুষ গড়া।।।।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট