পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে ৬ নং ওয়ার্ডে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী মনছুর আলম


সেলিম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টারঃ- চট্টগ্রামে প্রথম শ্রেণীর পটিয়া পৌরসভা  নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা না হলেও পৌরসভার নির্বাচনে কে কে প্রার্থী হচ্ছেন এই নিয়ে চলছে নেতাদের দৌড়ঝাঁপ। দলীয় মনোনয়ন পেতে চেষ্টা চলছে পুরোদমে। অলিখিতভাবেই শুরু হয়ে গেছে বিভিন্নভাবে প্রচার-প্রচারণা। আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেবেন সাবেক নগর ছাএলীগ নেতা পরিছন্ন রাজনীতি কর্মী উদীয়মান যুবনেতা আল মনছুর। সে পটিয়া পৌরসভা ৬ নং ওয়ার্ডে ঐতিহ্য পরিবারের সন্তান। তার পিতা একজন সফল ব্যাবসায়ি এবং  একনামে পরিচিত বাদশা কোম্পানি। দীর্ঘদিন এলাকায় আল মনছুর

 মানুষের  সেবা করার ব্রত নিয়ে  নির্বাচনী মাঠে সমাজ সেবামুলক কাজে জড়িত ছিলেন। পটিয়া  পৌর নির্বাচনে মেয়র এবং কাউন্সিলর পদে অনেকেই সম্ভাব্য প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিয়ে শুরু করেছেন পৌর এলাকায় গণসংযোগ। চলমান পরিষদের মেয়াদ শেষ হবে  ফেব্রুয়ারি মাসে। তফসিল ঘোষণার আগেই বিভিন্ন কৌশলে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। 

জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে পারে নির্বাচন কমিশন। সেই পরিপ্রেক্ষিতেই পৌরসভা নির্বাচনের মেয়র ও কাউন্সিলর পদে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে উঠছেন। শুরু করেছেন তৎপরতা।

ইতিমধ্যে মেয়র ও কাউন্সিলর পদের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন। অনেকে গণসংযোগ, মতবিনিয়ম সভা শুরু করেছেন। আল মনছুর দৈনিক ইনফো বাংলা"কে জানান,৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে আমি সম্ভ্রান্ত পরিবারের ছেলে সুশিক্ষাই  শিক্ষিত। আমরা দু,ভাই এক বোন  ভাই- বোনের মধ্যে সবার ছোট ভাই আবু ইউছুপ(পিংকু),,ক্রীড়া,সামাজিক সংঘঠন, সেবা,উন্নয়নমূলক কাজে তার ভূমিকা অপরিসীম। বর্তমানে ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সাতক্ষীরা নালতা শাখায় জুনিয়র অফিসার পদে নিয়োজিত, আমার ছোট বোনের হাসব্যান্ড সরকারী চাকুরীজীবি চট্টগ্রাম জেলা প্রসাশক কার্যালয়ের আওতাধীন,প্রবাসী কল্যাণ শাখায় সহকারী অফিসার  কোর্ট বিল্ডিং।আমার বাবা আবুল কাসেম (বাদশা)কোম্পানি ১৯৮০"সাল থেকে নগরীর আইস ফ্যাক্টরী রোড় থেকে পরিবহন ব্যবসার সাথে সংপৃক্ত, এখন ও পর্যন্ত সুনাম আর  সততার সহিত পরিবহন ব্যবসা করে আসছেন।বর্তমান চট্রগ্রাম আনোয়ারা বাঁশখালী মালিক সমিতির সহ-সভাপতি আমার বাবা পরিবহন ব্যবসার পাশাপাশি ১৯৯৫ সাল থেকে ওনি বহদ্দারহাট বাস টার্মিনালে এম,কে মোটর পার্টস দোকান প্রতিষ্টা করেন!এবং সততা,যোগ্যতার সাথে ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা করে আসছেন সামাজিক সেবামুলক,দানশীল পরহেজগার একজন ব্যক্তি আমার বাবা অতি সাধারণ জীবন যাপন করেন, অহংকারের ছিঁটেফোটা নেই আমার বাবার!দক্ষিণ চট্রগ্রামে দক্ষ সৎ পরিবহন ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত আমার বাবা!আমার আব্বা ব্যবসায়ী সে সূত্রাধিকারে আমি ও,,একজন মোটর পার্টস।ও পরিবহন ব্যবসায়ী!নগরীর আইস ফ্যাক্টরি রোড়ে আমার বাবার ব্যবসা থাকার সুবাধে আমার বুদ্ধির বয়স থেকে নগরীর আইস ফ্যাক্টরি রোড় বাবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আমার যাওয়া আসা ছিলো!৮০/৯০দশকের দিকে চট্রগ্রাম নগরীর আলকরন ওয়ার্ডে,,পটিয়ার বর্তমান সাংসদ হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী এমপি মহোদয়  যখন কমিশনার নির্বাচিত হয়েছিলেন তখন আমার আব্বা মাননীয় হুইপ মহোদয়"কে কমিশনার পদে বিজয়ী করতে সাহসী ও অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

আমার সেজ চাচা,মেঝ চাচার ও,,দোকান ছিলো নগরীর আইস ফ্যাক্টরি রোড়ে!তখনকার দিনে তো আর ডিজিটাল ব্যানারের প্রচলন ছিলো না,,দেয়ালে পোস্টার কিংবা চিকা মারা হতো!আইসফ্যাক্টরি রোড়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি,,কিংবা চিকা মারা হতো,বিভিন্ন আওয়ামীলীগ নেতার প্রচার মূলক দেয়াল লিখন,,কিংবা পোস্টার করা হতো!বঙ্গবন্ধুর ছবি দেখলে হৃদয়ে কেমন জানি শিহরণ জাগতো!আমার বাবা বুকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করা একজন সৎ ব্যক্তিত্ব!ছোটবেলায় বাবাকে ভয় পেতাম,,তাই বেশী কথা বলতাম না!সেজ চাচার সাথে আমার সম্পর্কটা ছিলো বন্ধুসুলভ,,সেজ চাচা আমাকে বঙ্গবন্ধু ও,,আওয়ামীলীগ সম্পর্কে বুঝাতেন,,আমি উৎসাহিত হতাম!আমি যখন ক্লাস ,এইট,নাইনে পড়তাম  আইস ফ্যাক্টরি রোড় যেতাম,,তখন সিটি কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের মিছিল গুলো দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখতাম!আওয়ামীলীগ,,আর বঙ্গবন্ধুর প্রতি তখন থেকেই শ্রদ্ধা আমার!সেজ চাচাকে বলতাম আমি কলেজে ভর্তি হলে,সিটি কলেজে ভর্তি হবো!ওনি আমাকে কথা দিয়েছিলেন,আমি তোকে সিটি কলেজে পড়াবো!সত্যি,সত্যি সেজ চাচা আমাকে সিটি কলেজে ভর্তি করিয়েছিলেন!কন্টেনিউয়াস চট্রগ্রাম শহরে বসবাস করা শুরু করলাম,,আমাকে আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ,যুবলীগ কি আমার সেজ চাচাই শিখিয়েছেন!কলেজে ভর্তি হওয়ার আগে,,পরে  ছাত্রলীগের কতো মিছিল মিটিং করেছি,,অন্যকে উৎসাহিত করেছি,ছাত্রলীগ,,আওয়ামীলীগের রাজনীতি করতে!জননেত্রী শেখ হাসিনা চট্রগ্রামে জনসভা করলে,,যথাসম্ভব অংশ গ্রহণ করেছি অনেকবার!তখন তো আর বর্তমান যুগের সেলফি মার্কা রাজনীতি ছিলোনা!বর্তমানে নেতার পাশে দাঁড়িয়ে দু,চারটা ছবি পোষ্ট করতে পারলেই বড়,বড়,নেতার ভাব!নেতা সাজা সহজ করে ফেলেছে,এফ,বি"সেলফি!

#আমি যখন রাজনীতির সাথে সংপৃক্ত হয়েছিলাম,,তখন রাস্তায় মাটির সাথে কথা বলা,,বা বয়সে অনেক,অনেক ছোট ছিলো,(নিন্মশ্রেণীর)"এসবের অনেককেই দেখছি বর্তমানে বড়,বড় আওয়ামীলীগার নেতার ভাব!বড়,বড়,আওয়ামীলীগার বিশ্লেষক!!((সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য না!) আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আমি আল- মনছুর নোমান)"৬নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হতে ইচ্ছুক!বিগত প্রায় চার মাস ধরে আমি আমার নির্বাচনী ওয়ার্ডে,,সর্বস্তরের সবার দোয়া,আশীর্বাদ নিতে,মাঠে কাজ করে যাচ্ছি!আমি অামার স্কুল লেভেল (ক্লাস টেন)থেকেই  বিভিন্ন সামাজিক,সাংস্কৃতিক,ক্রীড়া সেবামুলক কাজে নিজেকে যথাসম্ভব নিয়োজিত রেখেছি!গরীব,দুঃখী মেহনতী মানুষদের সাধ্যমতো সাহায্য করে চলেছি,,সর্বস্তরের সবার পাশে ছিলাম,আছি,থাকবো ইনশাআল্লাহ!! আমার বংশমর্যাদা,চরিত্র, শিক্ষাগত যোগ্যতা,,আচার,আচরণ,সততা,যাচাই করবেন আমার নির্বাচনী ওয়ার্ডের সর্বসাধারণ!আমি ৬নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের সবার দোয়া,আশীর্বাদ ও সমর্থন কামনা করেন।


শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট