ইলেকটোরাল কলেজের ভোটেও হারল ট্রাম্প


নিউজ ডেস্কঃ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইলেকটোরাল কলেজের ভোটে বিজয়ী হয়েছেন জো বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যায় ক্যালিফোর্নিয়া তাদের ইলেক্টোরাল ভোটের ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করে। এর মধ্য দিয়ে শেষ হয় ইলেক্টোরাল ভোটের ফলাফল ঘোষণা। বাইডেন পেয়েছেন ৩০৬টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট ও ট্রাম্প পেয়েছেন ২৩২টি ভোট। 

ইলেক্টোরাল ভোট নিয়ে সাধারণত রাজনৈতিক উত্তাপ থাকে না। তবে এবারের চিত্র আলাদা। ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তুলে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করেছেন ট্রাম্প। ট্রাম্প নির্বাচনের ফল না মেনে তা চ্যালেঞ্জ করায় এবার এই ভোট তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে ওঠে; রাজ্যে রাজ্যে অনুষ্ঠিত এই ভোটের দিকে চোখ রাখছিলেন সবাই। খবর বিবিসির

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয় ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটের মধ্য দিয়ে। দেশটির ৫০টি রাজ্য ও রাজধানী অঞ্চল ডিস্ট্রিক অব কলাম্বিয়ার ইলেক্টররা ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটে অংশ নেন। নাগরিকদের ভোটে যে রাজ্যে যে প্রার্থী জয়ী হন, সেখানকার সব ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট তিনি পেয়ে থাকেন। এ হিসাবে জয়-পরাজয় নাগরিকদের ভোটেই নির্ধারণ হয়ে যায়।

ইলেক্টোরাল ভোটে জয়ী হওয়ার পর জাতির উদ্দেশে দেওয়া বক্তৃতায় যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রকে হুমকির মুখে ফেলা হয়েছিল। এই লড়াইয়ে গণতন্ত্র রক্ষা পেয়েছে, ভীত আরও মজবুত হয়েছে। জনগণের ইচ্ছার জয় হয়েছে। 

বক্তৃতায় বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে রাজনীতিবিদেরা ক্ষমতা গ্রহণ করেন না। জনগণ রাজনীতিবিদদের ক্ষমতা গ্রহণের অনুমোদন দেন। জনগণ ভোট দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানের প্রতি আমাদের আস্থা অবিচল রয়েছে। নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা অটুট রয়েছে।

ইলেক্টোরাল ভোটের আগে নির্বাচনের ফল বানচাল করতে সর্বাত্মক চেষ্টা করেছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। জালিয়াতির অভিযোগ তুলে ট্রাম্পের পক্ষে টেক্সাসের অ্যাটর্নি জেনারেল চার রাজ্যের ২০ লাখ ভোট বাতিল করার জন্য সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছিলেন। ট্রাম্পের পক্ষ নিয়ে ওই মামলার নথিতে স্বাক্ষর করেছিলেন রিপাবলিকান পার্টির ১০০ জন আইনপ্রণেতা। বাইডেনের জয় ছিনিয়ে নিতে এটি ছিল ট্রাম্পের শেষ চেষ্টা। তবে সর্বোচ্চ আদালত গত শুক্রবার মামলাটি খারিজ করে দেন। ফলে ট্রাম্পের সর্বশেষ চেষ্টাও ব্যর্থ হয়েছে।


নির্বাচনের ফলাফল পাল্টে দেওয়ার জন্য ট্রাম্পের চেষ্টার কথা উল্লেখ করেন বাইডেন। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্ট ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনের ফলাফল পাল্টে দেওয়ার প্রয়াস প্রতিহত করেছেন।তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে অনেক আগে থেকেই গণতন্ত্রের শিখা জ্বলে উঠেছিল। আমরা জানি মহামারী বা ক্ষমতার অপব্যবহারের কিছুই এই শিখা নিভিয়ে দিতে পারে না।বইডেন জনগণের উদ্দেশে বলেন, এখন সময় এসেছে ঘুরে দাঁড়াবার। ইতিহাসে বার বার আমরা এটাই করেছি। এখন সময় একত্রিত হওয়ার।প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে এখনও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তথ্যের উৎসঃ সমকাল


শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট