ঝিকরগাছার শংকরপুর ইউনিয়নের বেতনা নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের কুমরী গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বেতনা নদী থেকে, অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে ড্রেজার মেশিন দিয়ে, বেতনা নদী থেকে প্রতিদিন বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে বেতনা নদীর পাশে অবস্থিত ঘরবাড়ী হুমকির মুখে পড়েছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকা বাসী।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, শংকরপুরের কুমরী গ্রামের রফিকের ছেলে জাহাঙ্গীর কবির, নিজের নব নির্মিত ভবনের নিচে ভরাট করার জন্য বেতনা নদী থেকে ড্রেজার বসিয়ে ১০ থেকে ১৫ দিন যাবত অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। প্রতিদিন বালু উত্তোলনের ফলে বিভিন্ন স্থাপনা হুমকির মুখে পড়েছে।

এদিকে অবৈধ বালু উত্তোলনের ফলে গ্রামের মানুষ খুবই চিন্তিত আছেন। ভুক্তভোগীরা জানান, ড্রেজার মেশিন পদ্ধতিতে বালু উত্তোলন করা হলে ভরা বর্ষায় তাদের বসত ভিটা বিলিন হতে পারে।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, ২০১০ সালে বালু উত্তোলন নীতিমালায় যন্ত্রচালিত মেশিন দ্বারা ড্রেজার পদ্ধতিতে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়াও সেতু, কালভার্ট, রেললাইনসহ মূল্যবান স্থাপনার এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন করা বেআইনি। অথচ নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্য, সরকারি ওই আইন অমান্য করে কুমরী গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বেতনা নদী থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে বালু উত্তোলনকারী জাহাঙ্গীর বলেন,বালু উত্তোলন করা সমস্যা হলে বন্ধ করে দেব।ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরাফাত রহমান বলেন, বালু উত্তোলনের বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। আপনাদের মাধ্যামে জানতে পারলাম। বিষয়টি তদন্ত পুর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট