যুবলীগ নেতা হত্যা মামলায় কারাগারে গান্না ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, নাসির মালিতা


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃযুবলীগ নেতা জাকির হোসেন শান্তি হত্যা মামলায় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মালিথাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।সোমবার সকালে বিচারিক আদালত ঝিনাইদহ জেলা ও দায়রা জজ আদালত (অতিরিক্ত-১) তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে সকালে আদালতে আত্মসমর্পণ করে সে। বিজ্ঞ আদালত এসসি ৪৫/১৩ মামলায় তাকে কাষ্টরিতে নিয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

২০১০ সালের ৭ জুলাই রাতে গান্না বাজার থেকে কাশিমপুর নিজ বাড়িতে ফেরার পথে সন্ত্রাসীদের বোমা হামলার শিকার হয়ে ৩ দিন পরে ঢাকায় চিকিতসাধীন অবস্থায় মারা যায় জাকির হোসেন শান্তি। শান্তির শ্বশুর সিরাজুল ইসলাম মালিথা ৯ তারিখে ঝিনাইদহ সদর থানায় অজ্ঞাত নামে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৯,তারিখ ৯-৭-২০২১।

২০১১ সালের ২৪ অক্টোবর আদালতে চার্জশীট জমা দেয় পুলিশ।সেই থেকেই পলাতক মামলার ৯ নং আসামি নাসির উদ্দিন মালিথা। এই মামলায় পুলিশ প্রথমে ৮ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে।এর মধ্যে ৪ জন ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়। জবানবন্দিতে তারা উল্যেখ করেছেন হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ও অর্থের জোগানদাতা নাসির উদ্দিন মালিথা।

নাসির হত্যার সময় পর্যন্ত গান্না ইউনিয়ন যুবদলের সহ সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।পরে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আসেন। ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বাচিত হয় মামলার বোঝা মাথায় নিয়েই।

আদালতে মামলার খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ২০১৩ সালের পর থেকে ২০২১ সালের ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত এসসি ৪৫/১৩ ও এসটিসি ১০৯/১১ মামলা দুটিতে বিজ্ঞ বিচারক ১২টি ওয়ারেন্ট ইস্যু করলেও থানায় পৌছেছে মাত্র ২ দুটি।আদালতের খাতায় পলাতক থেকেও তিনি পুলিশ ও সিভিল প্রশাসনের সাথে প্রোগ্রাম করে বেড়িয়েছেন।করেছেন রাজনৈতিক প্রোগ্রাম।

অবশেষে জানুয়ারির ২২ তারিখে জাতীয় বিভিন্ন প্রিন্ট মিডিয়া ও অনলাইন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হলে আত্মগোপণে চলে যায় নাসির উদ্দিন। ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে বিচারিক আদালতে আত্মসমার্পণ করেলে কারাগারে পাঠায় আদালত।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট