শ্যামনগরে সংবাদ সংগ্রহকালে কৈখালী চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিম কর্তৃক সাংবাদিক লাঞ্চিত

হুদা মালী,শ্যামনগর প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা,শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিম কর্তৃক সাংবাদিক আক্তার হোসেন লাঞ্চিত। ঘটনা সূত্রে জানায় কৈখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিম। সরকারি কর্তৃক সুন্দরবন সংল্গ গোলাখালী নিষিদ্ধ এলাকা থেকে চেয়ারম্যান বালু উত্তোলন করেন। সাতক্ষীরা দৈনিক পত্রদূত পত্রিকার রমজাননগর ইউনিয়ন প্রতিনিধি আক্তার হোসেন অবৈধ বালু উত্তোলনের সংবাদ সংগ্রহ করে প্রকাশিত করেন। 

গত ২২ ফেব্রয়ারী সাংবাদিক আক্তার হোসেন সংবাদ সংগ্রহ করতে কৈখালীর,জয়াখালী মোড়ে পৌঁছলে চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিম সাংবাদিক আক্তার হোসেনের পথ অবরদ্ধ করেন।

 আক্তার হোসেনের মটরসাইকেল থেকে নামিয়ে বিভিন্ন অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ সহ ধাক্কাধাক্কি করেন। পরে সাংবাদিক আক্তার হোসেন বিষয়টি সুন্দরবন প্রেস ক্লাবের সহকর্মীদের জানাই। এই নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিক মহল ফুঁসে উঠা সহ তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন। স্থাণীয় সাংবাদিকরা বলেন, সংবাদ মাধ্যমসহ মতপ্রকাশের স্বাধীনতার জন্য বড় হুমকি হয়ে উঠেছে সাম্প্রতিক 'ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন'। এমন আইন ও নানারকম ভয়ভীতি-হুমকির কারণে সাংবাদিকতার পরিসর সংকুচিত হয়ে উঠছে।

সাংবাদিকতা শারীরিকভাবে হামলা ও হেনস্থর শিকার হতে হচ্ছে সাংবাদিকদের। এবং হামলা-নির্যাতন সাংবাদিকতা পেশাকে আরও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে।পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলা, নির্যাতন ও হয়রানির ঘটনা ক্রমাগত বাড়ছে। অনেক ক্ষেত্রে সাংবাদিক নির্যাতনের এসব ঘটনা ঘটছে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নাকের ডগায়। সাংবাদিকরা যে শুধু সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ঘটনাস্থলে প্রকাশ্যে এমন হামলার শিকার হচ্ছেন তা নয়; দেশের বিভিন্ন স্থানে পূর্বপরিকল্পিতভাবে সাংবাদিকদের ওপর চোরাগোপ্তা হামলা চালানোর বহু ঘটনা ঘটেছে।আরও উদ্বেগজনক হলো সাংবাদিকদের ওপর হামলা-নির্যাতনের বেশিরভাগ ঘটনারই সুষ্ঠু বিচার হচ্ছে না। 

 কৈখালী ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিমের কাছে মোবাইলে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিক লাঞ্চিত ঘটনা অশিকার করেন।

শেয়ার করুন

প্রকাশকঃ

অফিসঃ হাজী সিরাজুল ইসলাম সুপার মার্কেট, মোহাম্মদপুর মোড়, ছুটিপুর রোড, ঝিকরগাছা, যশোর।

পূর্ববর্তী প্রকাশনা
পরবর্তী প্রকাশনা