বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চের ভাষণে ঘুমন্ত বাঙ্গালী জাতিকে জাগিয়ে তোলেন

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাতই মার্চের ভাষনের মাধ্যমে ঘুমন্ত বাঙ্গালী জাতিকে জাগিয়ে তোলেন। ভাষনের যাদুমন্ত্রে উদ্দীপ্ত হয়ে বাঙ্গালী জাতি সেদিন স্বাধীনতার যুদ্ধে ঝাফিয়ে পড়েছিলো। জাতিসংঘের ইউনেস্কো বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের ভাষনকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ ডকুমেন্টারি হিসেবে ঘোষণা করেছে। সাতই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষন আজ পৃথিবীর অন্যতম সেরা ভাষনের স্বীকৃতি পেয়েছে। ৫ মার্চ শুক্রবার বিকেলে মোংলার বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ আয়োজিত কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় খুলনা সিটি কপোর্রেশনের মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক একথা বলেন।

শুক্রবার বিকাল ৪টায় অনুষ্ঠিত কর্মী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি অর্ধেন্দু শেখর বিশ্বাস। সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন বাগেরহাট জেলা আ্ওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সাবেক রামপাল উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোল্লা আব্দুর রউফ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ সুনীল কুমার বিশ্বাস, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইব্রাহিম হোসেন ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান জসিম। কর্মী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দিগরাজ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ তুষার গাইন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ ইকবাল হোসেন, বুড়িরডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নিখিল চন্দ্র রায়, ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা মোঃ তারিকুল ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান গাজী আকবর হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ কবির হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইস্রাফিল হোসেন হাওলাদার, পৌর কাউন্সিলর মোঃ শফিকুর রহমান আওয়ামীলীগ নেতা উৎপল মন্ডল, তরফদার মোত্তালিব মুক্ত, মোঃ আবু হানিফ, পীযুষ কান্তি মজুমদার, শ্যামল দেওয়ান, উদয় শংকর বিশ্বাস প্রমূখ। কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক আরো বলেন এক সময়ে আমাদের দেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি বলে যারা সমালোচনা করেছে এখন বাংলাদেশ তাদের কাছে উন্নয়নের রোল মডেলের উদাহারণ। করোনাকালে অনেক বড় বড় দেশ খাদ্য সরবরাহ করতে পারেনি। সেখানে বাংলাদেশে খাদ্যের অভাবে কেউ মারা গেছে এমনটি শোনা যায়নি। ২০২০ সারের ১৮ মার্চ থেকে প্রতি সপ্তাহে খাদ্য সমাগ্রী সরবরাহ করা হয়েছে। এটি কেবল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে সম্ভব। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে শেখ হাসিনা সাড়ে তিনশো একর জমির উপর মোংলায় ইপিজেড করেছিলো। বিএনপি ক্ষমতায় এসে ইপিজেড বন্ধ করে দিয়েছিলো। এখন ইপিজেডে ৫ হাজার নারী কাজ করে। এটা কেবলমাত্র শেখ হাসিনা এবং আওয়ামীলীগের পক্ষেই সম্ভব।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট