সুন্দরবনের হিংস্র বাঘের থাবায় বাবার ৭বছর ব্যবধানে ঈদের দিনে বাঘের আক্রমণে নিহত ছেলে।

হুদা মালী,শ্যামনগর প্রতিনিধি: ঈদের দিনে সাতক্ষীরা পশ্চিম সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে রেজাউল ইসলাম নামে এক মৌয়াল নিহত হয়েছেন। শুক্রবার (১৪ মে) বিকেলে পশ্চিম সুন্দরবনের তার তালপট্টি নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রেজাউল সাতক্ষীরা শ্যামনগর উপজেলার  গাবুরা ইউনিয়নে চকবারা গ্রামের নূর ইসলাম সরদারের ছেলে।সে বর্তমানে বুড়িগোয়ালিনীর বাসিন্দা।নিহত রেজাউল ৪ সন্তানের জনক ।

গাবুরা ইউনিয়নের সোরা গ্রামের রেজাউল ইসলাম জানান, একটি নৌকায় রেজাউল ইসলামসহ নয়জন মধু সংগ্রহ করতে সুন্দরবনে যায়। শুক্রবার বিকেলে রেজাউলকে বাঘে ধরে মেরে ফেলে। পরে রেজাউলের মরদেহটি উদ্ধার করে বাকি মৌয়ালরা লোকালয়ে ফিরছে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তারা ঘটনাটি জানিয়েছে।

গাবুরা চকবারা গ্রামের বুলবুল বলেন, 'রেজাউলসহ আমি  মৌয়ালে গত ০৩ই মে বুড়িগোয়ালিনী স্টেশন থেকে মধু কাটার উদ্দেশে ৩ নৌকায় ২৬ জন একত্রে সুন্দরবনে যায়। ঈদের সময়ও বাড়িতে ফেরেননি আমরা।রেজাউলের সহযোগী মৌয়ালদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি শুক্রবার বিকেলে রেজাউলকে বাঘে ধরে। পরে আমরা সবাই তার মৃতদেহ উদ্ধার করি। প্রায় ৭ বছর আগে ২০১৪ সালে রেজাউলের বাবা নূর ইসলাম সরদারও একই এলাকায় বাঘের আক্রমণে মারা যান।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কদমতলা ফরেস্ট স্টেশন কর্মকর্তা আবু সাঈদ বলেন, 'বনজীবীদের মাধ্যমে বাঘের আক্রমণে রেজাউল নামে এক ব্যক্তির নিহতের বিষয়টি শুনেছি। তিনি কিছুদিন আগে মধু কাটার উদ্দেশে বুড়িগোয়ালিনী ফরেস্ট স্টেশন থেকে পাস নিয়ে বনে যান। তার মৃতদেহ উদ্ধার করে লোকালয়ে আনা হচ্ছে।

এর আগে ২০১৪ সালে রেজাউলের বাবাও সুন্দরবনের বাঘের আক্রমণে নিহত হন।মাত্র সাত বছরের ব্যবধানে বাঘের আক্রমণে একইভাবে পিতা-পুত্রের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

শেয়ার করুন

প্রকাশকঃ

অফিসঃ হাজী সিরাজুল ইসলাম সুপার মার্কেট, মোহাম্মদপুর মোড়, ছুটিপুর রোড, ঝিকরগাছা, যশোর।

পূর্ববর্তী প্রকাশনা
পরবর্তী প্রকাশনা