সাম্প্রদায়িকতার বিষ বাষ্প ছড়িয়ে যারা রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্রে লিপ্ত তাদের রুখে দিতে হবে ; তালুকদার আব্দুল খালেক

তুহিন রানা (আব্রাহাম) ; খুলনা নগর প্রতিনিধিঃ
আজ নগর যুবলীগের বিক্ষোভ সমাবেশে সিটি মেয়র ও খুলনা নগর আওয়ামিলীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, সাম্প্রদায়িকতার বিষ বাষ্প ছড়িয়ে যারা রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্রে লিপ্ত তাদের রুখে দিতে হবে। ওরা ধর্মের নামে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িক ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে যা বঙ্গবন্ধুর বাংলায় কখনই সম্ভব নয়। বাঙ্গালীজাতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে, ৭১' এ এই ধর্ম ব্যবসায়ীদের মুখোশ উন্মোচিত করে আস্তাকুড়ে নিক্ষেপ করেছে। তেমনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আবারও এই জাতি ইসলামের অপব্যাখাকারী, ধর্মীয় লেবাসধারীদের রুখে দেবে।

আর এই সংগ্রামে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের  অগ্রনী ভূমিকা পালন করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর বাংলায় মৌলবাদের ঠাই নাই, শেখ হাসিনার বাংলায় জঙ্গীবাদের ঠাই নাই, আওয়ামী লীগের বাংলায় সাম্প্রদায়িক অপশক্তি'র ঠায় হবে না। এ বাংলায় হিন্দু, মুসলিম, খ্রীষ্টান ও বৌদ্ধ আমরা সকলে ভাই ভাই। আমরা সবাই বাঙ্গালি। 

 
সোমবার বিকাল চারটায় সারা দেশ ব্যাপী মৌলবাদ, জঙ্গীবাদ ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তি'র বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসাবে নগর যুবলীগ আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেসিসি মেয়র মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এসব কথা বলেন।

এ সময় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য প্রদানকারী ও ইসলামের অপব্যাখাকারীদের  অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় আনার তীব্র দাবী জানান। এ সময় হুশিয়ারি দিয়ে বলেন কোন প্রকার ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচারণ মেনে নেওয়া হবে না। বঙ্গবন্ধু ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ এর ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

এ সময় খুলনা মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা।

নগর যুবলীগের সদস্য এস এম হাফিজুর রহমান হাফিজ এর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগ নেতা মুন্সি মাহাবুব আলম সোহাগ, সাবেক ছাত্রনেতা এস এম আকিল উদ্দিন, যুবলীগ নেতা কামরুল ইসলাম, আব্দুল কাদের শেখ, আবুল হোসেন, কাজী কামাল হোসেন, শওকাত হোসেন, অভিজিৎ চক্রবর্তী দেবু, কবির পাঠান, তাজুল ইসলাম, কাজী ইব্রাহীম মার্শাল, মেস্তফা শিকদার, জুয়েল হাসান দিপু, মহিদুল ইসলাম মিলন, মশিউর রহমান সুমন, মেহেদী হাসান মোড়ল, কে এম শাহীন হাসান, ইয়াসিন আরাফাত, রাশেদুল ইসলাম রাশেদ, বাচ্চু মোড়ল, মশিউর রহমান লিটন, রাশেদুজ্জামান রিপন, ওলিউর রহমান রাজু, আব্দুল্লা-আল-মামুন মিলন, আব্দুল মালেক, ইলিয়াস হোসেন লাবু, আরিফুর রহমান আরিফ, রবিউল ইসলাম লিটন, মোস্তাইন বিন ইদ্রিস চঞ্চল, হাসান শেখ, মুক্তা সরদার, শাহীন আলম, সোহাগ দেওয়ান, বাদল সিপাহী, মাসুম-উর-রশিদ, জামাল হোসেন, আনিসুর রহমান, ইব্রাহিম হোসেন তপু, আলম খান, সাহাবুদ্দিন সাবু, রবিউল ইসলাম বাপ্পি, ইউসুফ মোল্লা, সাকিব হাওলাদার, ইমরুল হাসান রিপন, রকিবুর ইসলাম, জামিল আহমেদ সোহাগ, ইকবাল হোসেন, মোঃ মাসুম হোসেন, সাবেক ছাত্রনেতা বিপুল মজুমদার, ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান রাসেল, সোহেল বিশ্বাস, আসাদুজ্জামান বাবু, রণবীর বাড়ৈ সজল, মাহামুদুল হাসান শাওন, জব্বার আলী হীরা, ঝলক বিশ্বাস, জহির আব্বাস, ইয়াসিন মোল্যা, সোহান হোসেন শাওন, মাহমুদুর রহমান রাজেস, আব্দুল কাদির সৈকত, হিরণ হাওলাদার, তরিকুল ইসলাম তুফান, এম এ হোসেন সবুজ, মেহেদী হাসান স্বপন, বায়েজিদ সিনা, জনি বসু, নিশাত ফেরদাউস অনি প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল নগরীর শঙ্খ মার্কেটস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে দলীয় কার্যালয়ে শেষ হয়।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট