ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চাইলে তাদের অবস্থা বিগত দিনের রাজাকার-আলবদরদের মতই হবে

ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চাইলে তাদের অবস্থা বিগত দিনের রাজাকার-আলবদরদের মতই হবে

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা: খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, মোংলা পৌরসভায় যারাই বসবাস করেন আমি তাদেরকে অন্তর দিয়ে ভালবাসি। এখানে ইজমটা (আঞ্চলিকতা) বিলিন হয়ে গিয়েছিল, এই পৌর নিবার্চনকে কেন্দ্র করে যারা আবারো উস্কানি দিয়ে ইজম করছেন, আমি আপনাদের বলছি যারা স্থানীয় নেতৃত্বদান করেন তারা এই ইজম থেকে বিরত থাকুন। কেউ যদি এই রাজনীতির মাঠে ইজম করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চান তাদের অবস্থা বিগত দিনের রাজাকার আলবদরদের মতই হবে। এখানো কোন ইজম হবেনা, এখানে যারা আছেন সবাই মোংলার মানুষ। এর ব্যতিরেকে কেউ কোন কাজ করলে তার ভবিষ্যৎ রাজনীতি ও নেতৃত্ব বন্ধ হয়ে যাবে। 

শনিবার বিকেলে শেখ আ: হাই সড়কস্থ স্থানীয় আওয়ামী লীগের দলীয় কাযার্লয় চত্বরে আসন্ন পৌরসভা নিবার্চনকে কেন্দ্র করে ৫, ৬ ও ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কমর্ী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতার এই বছরে কোন রাজাকার যদি এখানকার কাউন্সিলর হয় যাদের কার্যকলাপের জন্য হবে তাদেরকে অবশ্যই এরজন্য পচতাতে হবে। তিনি দলীয় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রাথর্ীদের নিবার্চিত করার জন্য সকলের প্রতি আহবাণ জানিয়ে আরো বলেন, যারা বিদ্রোহী প্রাথর্ী হবেন, তারা তাদের নিজ দায়িত্বে ভেবে চিন্তে হবেন। কারণ বিদ্রোহীদের দলে কোন জায়গা হবেনা। 


পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আ: রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, রামপাল উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক আ: রউফ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুনীল কুমার বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম হোসেন, চাঁদপাই ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা তারিকুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম, আওয়ামী নেতা সাখাওয়াত মিলন, কাজী গোলাম হোসেন বাবলু, ইমাম হোসেন ও শ্রমিক লীগ নেতা ওমর ফারুক সেন্টু। 

আগামী ১৬ জানুয়ারী মোংলা পোর্ট পৌরসভার নিবার্চন অনুষ্ঠিত হবে। সেই লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী  নিবার্চনের জন্য এই কর্মী  সমাবেশ করছেন। দীর্ঘ ১০ বছর পর পৌর নিবার্চন হতে যাওয়ায় সকলের মধ্যে একটি উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। উল্লেখ্য, সামীনা জটিলতার মামলার কারণে এর আগে নিধার্রিত সময়ে নিবার্চন না হওয়ায় টানা ১০ বছর পর নিবার্চন হতে যাচ্ছে মোংলা পোর্ট পৌরসভার। 


শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট