মোহনগঞ্জে ৯৯৯ এ কল ব্যবহার করতে পুলিশের ব্যাপক প্রচারণা

মোহনগঞ্জে  ৯৯৯ এ কল  ব্যবহার করতে পুলিশের ব্যাপক প্রচারণা

ময়মনসিংহে পুলিশের প্রচারণা  

আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি  নেত্রকোনা: মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার এই লক্ষ্যকে সাফল্য করতে    মোহনগঞ্জ থানার উদ্দ্যোগে ধর্ষনসহ নারী নির্যাতন সংক্রান্ত সকল অপরাধ প্রতিরোধে ৯৯৯-এ কল এর ব্যাপক প্রচারণা করেন মোহনগঞ্জ থানা পুলিশ। এ সময়  মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক সহ বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের কিশোর কিশোরেরা উপস্থিত ছিলেন। 

সোমবার বিকালে পৌরসভা সহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পুলিশের গাড়ীযোগে মাইকিং করে সচেতনতা মুলক বিভিন্ন লিফলেট বিতরন, উঠান বৈঠক প্রভৃতি মাধ্যমে ৯৯৯-এর  ব্যাপক কার্যক্রম প্রচারণা চালান। ৯৯৯ ব্যাবহার করে আপনার পুলিশি প্রয়োজনীয়তা জানান,৯৯৯ নাম্বার  আপনি ব্যাবহার করুন এবং অন্যকে ব্যাবহার করতে উৎসাহিত করুন, ৯৯৯কল করতে কোন টাকা লাগেনা, এমনকি মোবাইলে ব্যালেন্স না থাকলেও ৯৯৯-এ কল করা যায়, পুলিশ সর্বদাই আপনাদের সেবায় নিয়োজিত। এদিকে পুলিশের এ প্রচারণাকে উপজেলা বাসী স্বাগত জানিয়ে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছে।

যশোরের বাগআঁচড়ায় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় বেত্রাবতী নিউজ ২৪ এর ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

 যশোরের বাগআঁচড়ায় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় বেত্রাবতী নিউজ ২৪ এর ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টারঃ যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়ায় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে, জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বেত্রাবতী নিউজ ২৪ ডট কমের ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। নিউজ পোর্টালের জন্মদিনে কেক কাটা হয়েছে। আয়োজন করা হয়েছে আলোচনা সভা।

সোমবার সন্ধায় বাগআঁচড়া প্রেসক্লাবে আলোচনা সভা ও কেক কাটার মধ্যে দিয়ে নিউজ পোর্টালটির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়।

বেত্রাবতী নিউজ২৪ ডট কমের সম্পাদক  প্রকাশক আরিফুজ্জামান আরিফের সভাপতিত্বে ও সহ বার্তা সম্পাদক আসাদুজ্জামান নয়নের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, শার্শা রিপোর্টাস ক্লাবের সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ইয়াকুব আলী বিশ্বাস, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, কায়বা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হাসান তুতুল, বেত্রাবতী নিউজ ২৪ ডট কমের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য কামরুল হাসান শামীম, ডাঃ আহসান কবির রানা।

এ ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, বাগআঁচড়া প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুজ্জামান মন্টু,আতাউর রহমান জয়নাল আবেদীন, নাজিমুদ্দিন জনি, বিল্লাল হোসেন, সাংবাদিক আঃ জব্বার,বাগআঁচড়া কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি অহিদ হাসান, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান অপু, সহ সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব, শিক্ষক, ছাত্রসহ সর্বস্তরের মানুষ।

কিশোরগঞ্জের ফ্যানের সুইচ দিতে গিয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু

কিশোরগঞ্জের ফ্যানের সুইচ দিতে গিয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু

মোঃ লাতিফুল আজম,কিশোরগঞ্জ নীলফামারী প্রতিনিধি: বৈদ্যুতিক ফ্যানের সুইচ দিতে গিয়ে বিদ্যুত স্পস্টে বেলাল হোসেন নামে (৬২) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার বিকালে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার চাঁদখানা ইউনিয়নের চাঁদখানা মাঝাপাড়া গ্রামে। সে একই গ্রামের মৃত তফেল উদ্দিনের ছেলে।

কিশোরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল আউয়াল জানান, চাঁদখানা ইউনিয়নের চাঁদখানা মাঝাপাড়া গ্রামের মৃত তফেল উদ্দিনের ছেলে বেলাল হোসেন (৬২) সরকারী খাদ্যবান্ধব কমর্সুচীর একজন সুবিধাভোগী। সে সোমবার খাদ্যবান্ধব ডিলালের কাছ থেকে ১০ টাকা কেজি দরের চাল নিয়ে বাড়িতে ফিরে যায়। বাড়িতে ফিরে বেলাল হোসেন নিজ ঘরে ঢুকে বৈদ্যুতিক ফ্যানের সুইচ অন করতে গেলে সে বৈদ্যুতিক শক খেয়ে মারা যান। ওসি আরো জানান, বৈদ্যুতিক তারে ফুটো থাকার কারনে বেলাল হোসেনের হাতের দুটি আঙ্গুল পুরে গেছে। এ বিষয়ে থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নির্যাতিতা শিশুর পরিবারের পাশে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শম্ভুজিৎ

নির্যাতিতা  শিশুর পরিবারের পাশে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শম্ভুজিৎ

আহসান উল্লাহ বাবলু  আশাশুনি  প্রতিনিধিঃ আশাশুনিতে প্রধান শিক্ষক কর্তৃক নির্যাতিতা ৬ষ্ঠ শ্রেণি পড়–য়া শিশুর পরিবারের পাশে দাড়িয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাংসদ প্রতিনিধি শম্ভুজিৎ মন্ডল। গতকাল সন্ধ্যায় আশাশুনি সদর ইউনিয়নের কোদন্ডা গ্রামে শিশুটির বাবা তুলশী মন্ডলের বাড়িতে হাজির হয়ে তার খোঁজ খবর নেওয়াসহ সকল প্রকার আইনি সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন তিন। 

তিনি বলেন, ধর্ষক ও নারী নির্যাতনকারীদের কোন দল নেই বা কোন পরিচয় নেই। তাদের একমাত্র পরিচয় তারা ঘৃণ্য ও সমাজের জঞ্জাল। এসব জঞ্জাল সমাজ থেকে মুক্ত করতে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সারাদেশে কাজ করে যাচ্ছে। এসময় তিনি যৌন নির্যাতনকারী শিক্ষক মইনুরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।

 এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ঢালী সামছুল আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বুদ্ধুদেব সরকার, উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রনজিৎ কুমার বৈদ্য, উপজেলা শিক্ষক সমিতির নেতা আবুল কালাম, মাদ্রাসা শিক্ষক আবুল কালাম বুলবুল, মেম্বর আজিজুর রহমান, শ্রমিক লীগের দপ্তর সম্পাদক তারিকুল ইসলাম, ছাত্রনেতা কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

 উল্লেখ্য,গত শুক্রবার (৯ অক্টোবর) সকালে আশাশুনি প্রি-ক্যাডেট স্কুলের প্রধান শিক্ষক কোদন্ডা গ্রামের মৃত. বাবর আলী কারিকরের ছেলে মইনুর ইসলাম (৪০) কোদণ্ডা গ্রামের ৬ষ্ঠ শ্রেণি পড়–য়া এক ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন করে। খবর পেয়ে আশাশুনি থানা অফিসার ইনচার্জ গোলাম কবীর লম্পট শিক্ষক মইনুরকে গ্রেফতার করেন। এঘটনায় ছাত্রী নিজে বাদী হয়ে আশাশুনি থানায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু আইনে ১০(১০)২০ নং একটি মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেফতারকৃত শিক্ষককে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

মহানবী (স.) কে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি যবিপ্রবির শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব সাময়িকভাবে বাতিল

মহানবী (স.) কে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি যবিপ্রবির শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব সাময়িকভাবে বাতিল

যশোর প্রতিনিধি : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.)কে নিয়ে কটূক্তি, কুরুচিপূর্ণ ও আপত্তিকর মন্তব্য করায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মিঠুন মন্ডলের ছাত্রত্ব সাময়িকভাবে বাতিল করা হয়েছে। একইসঙ্গে তার ছাত্রত্ব কেন স্থায়ীভাবে বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশও দেওয়া হয়েছে। সোমবার সকালে যবিপ্রবির উপাচার্যের কার্যালয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটি, শিক্ষক সমিতি ও কর্মকর্তা সমিতির জরুরি সভায় তার ছাত্রত্ব বাতিলের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন।সভায় মিঠুন মন্ডলের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ প্রচলিত আইনে মামলা দায়ের এবং এ বিষয়ে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তা করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এছাড়া ঘটনায় চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। কমিটির আহ্বায়ক হলেন ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন ড. মো. মেহেদী হাসান। কমিটির সদস্যরা হলেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. সুমন চন্দ্র মোহন্ত, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো.আমজাদ হোসেন, ড.ইঞ্জি এবং সদস্য সচিব কর্মকর্তা সমিতির সহ-সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম। কমিটিকে আগামী সাত কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সভায় উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবির ডিন ড. এ এস এম মুজাহিদুল হক, অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস, অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল আমিন, ড. আব্দুল্লাহ আল মামুন, ড. সুমন চন্দ্র মোহন্ত, ড. নাসিম রেজা, ড. মো. মেহেদী হাসান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. ইকবাল কবীর জাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক মো. আমজাদ হোসেন, ড.ইঞ্জি, রেজিস্ট্রার।


আশাশুনির খরিয়াটি হাইস্কুলের সভাপতি কর্তৃক শিক্ষকদের অফিস কক্ষে ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগ

 আশাশুনির খরিয়াটি হাইস্কুলের সভাপতি কর্তৃক  শিক্ষকদের অফিস কক্ষে ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগ

 

আহসান উল্লাহ বাবলু আশাশুনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : আশাশুনি উপজেলার দরগাহপুর ইউনিয়নের খরিয়াটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুল বারিক খান ঐ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অফিস রুমে ঢুকতে দিবে না বলে অফিস রুমে যাওয়ার ৩টি ক্লপসিকল গেটেই তালা ঝুলিয়ে রেখেছেন মর্মে শিক্ষকবৃন্দ অভিযোগ করেছেন। সোমবার সকালের কোন এক সময় সভাপতি এ তালা ঝুলিয়ে দেন। জানাগেছে, সম্প্রতি ঐ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ কার্য সম্পন্ন করাকে কেন্দ্র করে সভাপতি ও শিক্ষকবৃন্দের মধ্যে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। এরই ধারাবাহিকতায় খরিয়াটি গ্রামের মৃত মোছেলউদ্দীন খান এর ছেলে সভাপতি আব্দুল বারিক খান নিয়োগ কমিটির সচিব ঐ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মুজিবুর রহমান ও কমিটির টিআর সদস্য শিক্ষক তারাপদ সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান ও মাহফুজা খাতুনের স্বাক্ষর ছাড়াই মিটিং না ডেকে গোপনে রেজুলেশন করে অবৈধভাবে গত ১৬ সেপ্টেম্বর প্রধান শিক্ষককে যোগদান করান। এরপর থেকে সভাপতি বিভিন্ন সময়ে রেজুলেশনে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়ার জন্য শিক্ষকবৃন্দকে ভয়ভীতি ও হুমকী প্রদর্শন করে চাপ দিতে থাকেন। কিন্তু শিক্ষকবৃন্দ তাকে (সভাপতিকে) বলেন, মিটিং করলেন না, আমরা কেন রেজুলেশনে স্বাক্ষর করবো। অধ্যবধি পর্যন্ত তারা এখনো রেজুলেশনে স্বাক্ষর না করায় শিক্ষকবৃন্দ সোমবার বিদ্যালয়ে প্রবেশ করার আগেই সভাপতি অফিস রুমে প্রবেশের ৩টি গেটেই তালা ঝুলিয়ে দেন। এব্যাপরে ঐ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক বিশ্বজিত কুমার মন্ডল জানান, প্রতি মাসে আমাদের ২জন শিক্ষক সকল শিক্ষকবৃন্দের বেতন তুলে নিয়ে বিদ্যালয়ে আসেন। এরপর আমরা সকল শিক্ষক বিদ্যালয় থেকে স্ব স্ব বেতন নিয়ে যায়। এরই ধারাবাহিকতায় আজ (সোমবার) সহকারী শিক্ষক মাওলানা আনসার উজ্জামান ও দপ্তরী মোক্তার আলী বেতন নিয়ে আসতে যান। যেকারণে আমরা বেতন নিতে বিদ্যালয়ে আসি। এসময় অফিস কক্ষে প্রবেশের ৩টি রুমেই স্কুলের তালা বাদেও নতুনভাবে তালাবদ্ধ দেখতে পায়। এরপর আমি নৈশ প্রহরীর মাধ্যমে জানতে পেরে সভাপতি সাহেবকে ফোন করি। এসময় সভাপতি সাহেব বলেন, চাবি বাড়ি আছে সুজন (নৈশ প্রহরী) কে পাঠিয়ে নিয়ে আসেন। সাথে সাথে সুজনকে বললে সে যেতে অস্বীকৃতি জানায়। এব্যাপরে ঐ বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী সুজন কুমার জানান, আমি প্রতি দিনের ন্যায় গতরাতেও বিদ্যালয়ে পাহারায় ছিলাম। সকালে একটু বাড়ি গিয়েছিলাম। সেই ফঁাকে আমাকে না জানিয়ে সভাপতি সাহেব তালা ঝুলিয়েছে। আমি চাবি নিয়ে আসবো কেন? ঐ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মুজিবুর রহমান জানান, সভাপতি সাহেব নিয়োগকে কেন্দ্র করে মনোমালিন্যের কারণে আমাদের অফিস কক্ষে ঢুকতে দিবে না বলে তালা মেরেছেন। এব্যাপারে ঐ বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুল বারিক খান জানান, আমি অফিসিয়াল ডকুমেন্টের সিকরিউটির জন্য তালা ঝুলিয়েছি। অফিসিয়াল ডকুমেন্টের সিকরিউটির দ্বায়িত্ব ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের আপনি তালা ঝুলানো কতটা বৈধ এমন প্রশ্ন সভাপতির কাছে করা হলে তিনি যথাযথ উত্তর দিতে পারিননি।

হবিগঞ্জে হাওরে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার

হবিগঞ্জে হাওরে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার
হবিগঞ্জে হাওরে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার

লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের বানিয়াচং হাওরে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার করার দায়ে ১ জন পাখি শিকারিকে অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। সোমবার বিকালে দাপ্তরিক কাজ শেষে অফিসে ফেরার পথে হঠাৎ নজরে আসে বানিয়াচঙ্গের মাঝ হাওরে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার করছে একদল লোক। বিষয়টি নজরে আসায় তাৎক্ষনিক বানিয়াচং আয়েশা আবেদ ফাউন্ডেশনের সামনের হাওরে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা।

এ সময় হাওরের মধ্যখানে অভিযান চালিয়ে প্রায় ১০ থেকে ১৫টি পাখি শিকার করার ফাঁদ ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। পাড়াগাও গ্রামের আব্দুল হামিদ নামে ১জন পাখি শিকারিকে হাতে নাতে আটক করে ১হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজ না করার অঙ্গিকার করানো হয় এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা বলেন বন্য প্রাণী সংরক্ষণে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

সামনে শীত মৌসুমে আমাদের দেশে প্রচুর অতিথি পাখির আগমন ঘটবে এসময় কঠোরভাবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে পাখি শিকার রোধ করা হবে। পরিবেশ ও বন্য প্রাণী রক্ষায় এ অভিযান চলমান থাকবে বলেও তিনি জানান এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইফফাত আরা জামান উর্মি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাতীয় পুরষ্কার ২০১৯ পেলো কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স

 স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাতীয় পুরষ্কার ২০১৯ পেলো কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স

খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, খুলনা ব্যুরো প্রধানঃ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাতীয় পুরষ্কার ২০১৯ ’ পেয়েছে ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। বাংলাদেশের উপজেলা পর্যায়ে সেরা দশে ৫ম স্থান অধিকার করায় এ এ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে হাসপাতালটি। গত-বৃহস্পতিবার (৯ অক্টোবর-২০ ইং) কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আব্দুর রশিদের হাতে এ্যাওয়ার্ড তুলে দেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক।

কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জাতীয় পর্যায়ে এ অসামান্য এ্যাওয়ার্ড পাওয়ায় ব্যাপকভাবে উচ্ছাবাসিত হয়েছেন কোটচাঁদপুরবাসী। তারা ডা. আব্দুর রশিদসহ হাসপাতালের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীসহ সকলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন। এদিকে জেলা হাসপাতাল ক্যাটাগরিতে সেরা পাঁচটিতে ৩য় হয়েছে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল। এসব তথ্য জানিয়েছেন ঝিনাইদহের সিভিল সার্জন ডাঃ সেলিনা বেগম।

তিনি জানান, দেশসেরার স্বীকৃতি স্বরুপ বৃহস্পতিবার ঢাকা’র প্যানপ্যাসিফিক হোটেল সোনারগাঁওয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের হাতে পুরস্কার (সম্মাননা ক্রেস্ট ও সনদপত্র) তুলে দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক। এসময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এটা ঝিনাইদহ বাসীর জন্য গৌরব। আগামীতে এই ধারা অব্যাহত রাখার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা থাকবে।

এই পুরস্কার পাওয়া কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান কর্মকর্তা ডা. মোঃ আব্দুর রশিদ জানান, এটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিছন্নকর্মী থেকে শুরু করে সকল মেডিকেল অফিসারের পরিশ্রমের ফল। তাদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, এবার সারাদেশে জেলা পর্যায়ে হাসপাতাল ক্যাটাগরিতে ৭ টি হাসপাতাল, সিভিল সার্জন অফিস কাট্যাগরিতে ৫টি সিভিল সার্জন অফিস, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ক্যাটাগরিতে ১০ টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, কমিউনিটি হেলথ সার্ভিস ক্যাটাগরিতে ১০ টি ও বিভাগীয় ক্যাটাগরিতে ২ টি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের দেশসেরা ঘোষণা করা হয়।

ডাঃ মোঃ আব্দুর রশিদ ১৯৭৩ সালে কালিগঞ্জের এক মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। তার বাবার নাম মৃত-আব্দুর রাজ্জাক, মাতা মৃত-মোমিন বেগম। তিনি ১০৮৮ সালে সরকারি নলডাঙ্গা ভূষণ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ১৯৯০ সালে যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে এইচএসসি, ২০০০ সালে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন। ২০০৬ সালে ২৫ তম বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারে তিনি চাকরিতে যোগদান করে। এর আগে ২০১৮ সালে তার আমলে লালমোহন ভোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থাকা কালীন স্বাস্থ্য মন্ত্রী পুরস্কার পান ।

নোবিপ্রবি মেডিকেল সেন্টারের উদ্বোধন

 নোবিপ্রবি মেডিকেল সেন্টারের উদ্বোধন

নোবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) তিনতলা ভিতে নবনির্মিত মেডিকেল সেন্টার এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আজ  সোমবার (১২ অক্টোবর) সকালে কেন্দ্রের নিচতলায় অনুষ্ঠিত হয়।

উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের  উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম। অনুষ্ঠানে  উপাচার্য চিকিৎসকদের মানবসেবায় ব্রতী হওয়ার আহবান জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। এসময় অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন  নোবিপ্রবি কোষাধ্যক্ষ ও চীফ মেডিকেল অফিসার প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফারুক উদ্দিন, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর, সাধারণ সম্পাদক মজনুর রহমান, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন। অনুষ্ঠানে অন্যদের মাঝে আরো উপস্থিত ছিলেন মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ, পরিকল্পনা উন্নয়ন ও ওয়ার্কস দপ্তরের পরিচালক এএইচএম নিজাম উদ্দিন চৌধুরি, মেডিকেল সেন্টারের ডেপুটি চিফ মেডিকেল অফিসার (চলতি দায়িত্ব) ডা: ইসমত আরা পারভীনসহ নোবিপ্রবি বিভিন্ন দপ্তরসমূহের পরিচালকবৃন্দ এবং ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। সবশেষ দোয়া পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা গিয়াস উদ্দিন।

হবিগঞ্জে ৪ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ২০ কোটি টাকার মানহানী মামলা করেছে এক চেয়ারম্যান

 হবিগঞ্জে ৪ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ২০ কোটি টাকার মানহানী মামলা করেছে এক চেয়ারম্যান

লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ দুর্নীতি-অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় হবিগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক প্রভাকরের ৪ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ২০ কোটি টাকার মানহানীর মামলা করেছেন মাধবপুর উপজেলার ১১নং বাঘাসুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন আহম্মদ। মামলার আসামীরা হলেন, দৈনিক প্রভাকরের সম্পাদক মোঃ আব্দুল হালীম, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোঃ সহিবুর রহমান বার্তা সম্পাদক আজহারুল ইসলাম চৌধুরী মুরাদ ও প্রতিবেদক শেখ সাহাউর রহমান বেলাল

গত ১৪ সেপ্টেম্বরের হবিগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম (আমল-৬) আদালতে ১০ টাকার কোর্ট ফি দিয়ে।

মামলাটি দায়ের করা হয় এদিকে মামলা দায়েরের ঘটনায় হবিগঞ্জে কর্মরত সাংবাদিকরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন মামলা সূত্রে জানা যায় ৩০-আগস্ট ও ৩-সেপ্টেম্বর দুটি সংবাদ প্রকাশ করে হবিগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক প্রভাকর পত্রিকায়, বাঘাসুরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন আহমদের পারিবারিক সামাজিক ও পেশাগতভাবে ২০ কোটি টাকা মূল্যের মানহানী হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

উপনির্বাচনে আ,লীগ থেকে মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন নাসিম পুত্র জয়

 উপনির্বাচনে আ,লীগ থেকে মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন নাসিম পুত্র জয়

মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ আসছে ১২ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় সংসদ এর  সিরাজগঞ্জ ১ কাজিপুর আসনের উপনির্বাচনে আ,লীগ থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন সাবেক সাংসদ নাসিম পুত্র প্রকৌশলী জয়।বিকেল ৩টায় বিপুল উৎসাহ উদ্দিপনার মধ্যে দিয়ে দলীয়নেতাকর্মিদের  সাথে নিয়ে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন।দুপুর ২টায় দলীয় কার্যালয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে বঙ্গবন্ধু ও  জাতীয় ৪ নেতার প্রতিকৃতিতে পূষ্পমাল্য অর্পন শেষে স্থানীয় নির্বাচন অফিসে জেলা নির্বাচন অফিসার সহকারী নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ আবুল হোসেনের নিকট মনোনয়ন পত্র জমা দেন। এসময় উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মজিবুল হক, উপজেলা চেয়ারম্যানখলিলুর রহমান সিরাজী,আ,লীগ সভাপতি শওকত হোসেন,এবং রতন ককান্দি,বাগবাটী,ছোনগাছা মেছরা, বহুলী ইউনিয়নের সভা পতি সাধারণ সম্পাদক সহ আ,লীগ ও সহযোগী সংগঠনের  বিপুল সংখক নিতাকর্মি সমর্থকগণ  উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য প্রয়াত স্বাস্থ্য মন্ত্রি মোহাম্মদ নাসিম গত ১২জুন মারা গেলে এই আসনটি শূন্য হয়।তাই উপোনির্বাচেনর নৌকার প্রতিক নিয়ে মনোনয়ন জমা দেন নাসিম পুএ জয়।

টাকা হাওলাত দেয়ায় প্রাণ গেল হাজী রফিকুলের

 টাকা হাওলাত দেয়ায় প্রাণ গেল হাজী রফিকুলের

মোঃ ফিরোজ হোসাইন,রাজশাহী ব্যরোঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে আত্রাই থানা পুলিশ। যেন টাকা ধার দেওয়াই কাল হল হাজী রফিকুলের। 

হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী খোলাপাড়া গ্রামের আক্তার হোসেনের ছেলে সুমন(২৫) কে আটক করা হয়েছে। আটককৃত সুমন চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে বলে আত্রাই থানা ওসি মোসলেম উদ্দিন সোমবার সকালে সাংবাদিকদের জানান।

ওসির দেওয়া তথ্যমতে, কয়েক বছর আগে আত্রাই বেলি ব্রিজের উত্তরপার্শে এম আর এস সু গ্যালারী দোকান করার সময় সুমনকে দু’লক্ষ টাকা ধার দেয় রফিকুল। আজ কাল করে বছর পেরিয়ে গেলে টাকার জন্য চাপ দিলে গত ১০ অক্টোবর টাকা দেওয়ার কথা দেয় সুমন। এর আগে গত ৫ অক্টোবর সোমবার সুমনসহ চারজন গোপন মিটিং করে রফিকুলকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

পরিকল্পনা মাফিক গত ১০ অক্টোবর রাত্রি আনুমানিক সাড়ে আটটার দিকে সুমন মোবাইল করে তার দোকান হতে টাকা নিয়ে যেতে বলে রফিকুলকে। এর মধ্যে দোকানের একটি শার্টার বন্ধ এবং আরেকটি অর্ধেক নামিয়ে রেখে রফিকুল দোকানে ঢুকা মাত্রই ঐ শার্টার নামিয়ে কাপড় দ্বারা রফিকুলের মুখ বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে দোকানের নিচে গোডাউনে রেখে দেয়। রাত্রি গভীর হলে লোকজন চলাচল কমে গেলে বস্তাবন্দি করে লাশ আত্রাই নদীতে ফেলে দেয়। 

আত্রাই থানা ওসি মোসলেম উদ্দিন বলেন,শীঘ্রই হত্যা কান্ডের সাথে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে। এছাড়া আটককৃত সুমনকে কোর্টে নিয়ে অধিকতর তথ্য উদঘাটনের জন্য রিমান্ডে আনা হবে।

যশোরের ৫টি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান পেয়েছেন দেশসেরা পুরস্কার

 যশোরের ৫টি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান পেয়েছেন দেশসেরা পুরস্কার

স্টাফ রিপোর্টার  : যশোরের ৫টি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান পেয়েছেন দেশসেরা পুরস্কার। স্বীকৃতি স্বরুপ মিলেছে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার ২০১৯। গত বৃহস্পতিবার প্যানপ্যাসিফিক হোটেল সোনারগাঁওয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। সোমবার সকাল ১১টায় যশোর জেনারেল হাসপাতালে সংবাদ সম্মেলনে যশোরের সিভিল সার্জন ডা.শেখ আবু শাহীন জানান, দেশসেরা যশোরে প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল, যশোর সিভিল সার্জন অফিস, মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে-ক্স, কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে-ক্স ও অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে-ক্স। হাসপাতালের তত্ত্বাধায়ক ডা.দিলিপ কুমার রায়ের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সভায় যশোরের সিভিল সার্জন বলেন, ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে এই পুরস্কার দেয়ার কথা থাকলেও করোনার কারণে পিছিয়ে যায়। 

১৩ বারের দেশসেরা চৌগাছা মডেল হাসপাতালের নাম এবারের তালিকায় স্থান কম্পেলেক্সের ডা.আলমগীর হোসেন৷ যশোর মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা. অজয় কুমার সরকার,বিএমএ দপ্তর সম্পাদক ডা.গোলাম মর্তজা, ডা.রেহেনেওয়াজ সাংবাদিক বৃৃন্দ সহ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারি৷

যশোরে ঝাটা মানববন্ধন

 যশোরে ঝাটা মানববন্ধন

                           যশোরে ঝাাঁটা মিছিল

স্টাফ রিপোর্টার : আজ বাজারে সবকিছুর দাম আগুন । মোটা চাল ৪০, আটা ২৮ ,আলু ৫০ ,ঝাল ২৫০, পিঁয়াজ ১০০ টাকা। বস্তা ভরে টাকা নিয়ে বাজারে যাবেন, থলে ভরে বাজার করবেন। আজ সবকিছুর দাম নাগালের বাইরে।তবে নাগালের মধ্যে কয়েকটি আছে। যেমন নারী - শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতন, হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট বিদেশে পাচার, আইনি, বেআইনি ভাবে মানুষ খুন। এগুলো করতে পয়সা লাগে না। লাগে শুধু দল ও বল । 

সকাল - বিকাল শুনি দেশে উন্নয়নের চাষ হচ্ছে। এই চাষে দেশে ব্যাপক জোয়ার এসেছে। তাই ধর্ষণ নির্যাতন, দূর্নীতি লুটপাট, খুনের ফলন বেড়েছে। তাই ৬/৯ বছরের শিশুও রেহাই পাচ্ছে না। উন্নয়নের নামে গাছ , ভবন লুটপাট, নদীর বোগল চাছা, মহা সড়কে নদীর ঢেউ খেলান।বাবা মেয়ের ইজ্জত, স্বামী স্ত্রীর সতিত্ব, ভাই বোনের আব্র“ না বাঁচাতে পারার উন্নয়ন চলছে আজ ।এ উন্নয়ন আমরা চাই না। এভাবে চলতে পারে না । আসুন আমরা ঝাটা নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলি। যেখানে ধর্ষণ নির্যাতন সেখানে এই ঝাটা নিয়ে প্রতিরোধ, ঝাটাপেটা। আসুন ঐক্যবদ্ধ ভাবে নারী নির্যাতন, দূর্নীতি লুটপাট প্রতিহত করি। সাধারণ শ্রমজীবী মানুষের বসবাস যোগ্য রাষ্ট্র গড়ি । সারাদেশে লাগাতার নারী -শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে সোমবার বিকালে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী) যশোর জেলা কমিটি ঝাটা প্রদর্শন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে । বিক্ষোভে বক্তারা উপরোক্ত কথা বলেন ।পার্টি অফিসের সামনে বিক্ষোভে সভাপতিত্ব করেন জেলা সভাপতি কমরেড নাজিমউদ্দিন । বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড জাকির হোসেন হবি, জেলা সাধারণ সম্পাদক কমরেড জিল-ুর রহমান ভিটু , কমরেড সখিনা বেগম দিপ্ত , যুবনেতা মাসুদুর রহমান, রিনা আহম্মেদ প্রমুখ ।

যশোরে আট নমুনা করোনা পজেটিভ

 যশোরে আট নমুনা করোনা পজেটিভ

 

যশোর প্রতিনিধি : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারের পরীক্ষায় আরো আটটি নমুনা পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে। এর সবগুলোই যশোর জেলার বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও পরীক্ষণ দলের সদস্য ড. তানভীর ইসলাম জানান, রোববার তাদের ল্যাবে মোট ৫৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৫১টি নেগেটিভ ফল দেয়।

এদিন যশোর জেলার ৪৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। এর মধ্যে আটটি নমুনা পজেটিভ ফল দিয়েছে। আর নড়াইলের ১৩টি নমুনা পরীক্ষা করে সবকটি নেগেটিভ পাওয়া যায়।

বিস্তারিত ফলাফল সকালেই যশোর ও নড়াইলের সিভিল সার্জনের দপ্তরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানান। স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেব অনুযায়ী রোববার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত যশোর জেলায় তিন হাজার ৯৮২ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে তিন হাজার ৬৪৯ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মারা গেছেন ৪৭ জন। চিকিৎসাধীন আছেন ২৮৩ জন।

কবি পদ্মনাভ অধিকারীর জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা

কবি পদ্মনাভ অধিকারীর জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা

যশোর প্রতিনিধি : বিদ্রোহী সাহিত্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিশিষ্ট কবি পদ্মনাভ অধিকারীর ৬৪তম জন্মদিন উপলক্ষে বিদ্রোহী সাহিত্য পরিষদের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকালে সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কাজী রকিবুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিদ্রোহী সাহিত্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মুন্না’র পরিচালনায় এসময় বক্তব্য রাখেন কবি সাধন কুমার অধিকারী, আবুল হাসান তুহিন, আহমেদ মাহাবুব ফারুক, অ্যাড. মাহমুদা খানম, হুমায়ন কবির, মনিরুজ্জামান, যশোর স্টুডেন্ট কমিউনিটি ঢাকার আহবায়ক হাসান ওয়ালিদ প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে কবি পদ্মনাভ অধিকারীকে জন্মদিনের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

নওগাঁর আত্রাইয়ে জাতীয় শ্রমিকলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

 নওগাঁর আত্রাইয়ে জাতীয় শ্রমিকলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা   

মোঃ ফিরোজ হোসাইন, রাজশাহী ব্যুরোঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে জাতীয় শ্রমিকলীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে । আত্রাই উপজেলা দলীয় কার্যালয়ে আজ সোমবার ১২ অক্টোবর সকাল ১০ টা ৩০ মিনিটে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী শুভ উদ্বোধন করেন আত্রাই রানীনগরের আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ আনোয়ার হোসেন হেলাল।

উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় শ্রমিক লীগ আত্রাই উপজেলা শাখার সভাপতি আব্দুস ছালামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রদান করেন জাতীয় সংসদ উপ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ আনোয়ার হোসেন হেলাল

আগামী ১৭ই অক্টোবর আত্রাই রানীনগরের উপ-নির্বাচন নিয়ে দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।শ্রমিকদের কল্যাণে আজীবন কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন। আগামী ১৭ অক্টোবর নির্বাচনে সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করার আহবান জানান। সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আত্রাই উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শ্রী নৃপেন্দ্রনাথ দও দুলাল উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এবাদুর রহমান এবাদ,উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি ও আহসান গঞ্জ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ আক্কাছ আলী, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী গোলাম মোস্তফা বাদল, উপজেলা আওয়ামী লীগ প্রচার সম্পাদক ও পাঁচুপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আফসার আলী,উক্ত অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন আত্রাই উপজেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার শোয়েব।

পিরোজপুরে উদ্দীপন শিশু ও যুব ক্লাবের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস পালিত

পিরোজপুরে উদ্দীপন শিশু ও যুব ক্লাবের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস পালিত

মিঠুন কুমার রাজ, স্টাফ রিপোর্টারঃ পিরোজপুরে পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস। ১২ ই অক্টোবর (সোমবার) সকাল ১০টায় উদ্দীপন শিশু ও যুব ক্লাব,পিরোজপুরের আয়োজনে উদ্দীপন অফিসের সামনে কন্যাশিশুর নির্যাতন, বাল্যবিবাহ রোধে মানববন্ধন করা হয়েছে। সকাল ১২ টার দিকে উদ্দীপন অফিসের হল রুমে কন্যাশিশু নির্যাতন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান অতিথি-মোঃ জাকির হোসেন, উপ-পরিচালক, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, পিরোজপুর। 

আলোচনা সভা,ছবি- কপোতাক্ষ নিউজ   

বিশেষ অতিথি - জনাব শহিদুল ইসলাম, শাখা ব্যবস্থাপক,উদ্দীপন পিরোজপুর জেলা শাখা।

সভাপতিত্ব করেন জনাব আঃ হালিম,আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক,উদ্দীপন, পিরোজপুর জেলা।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছে উদ্দীপন শিশু ও যুব ক্লাব পিরোজপুর জেলার সকল সদস্য/সদস্যাবৃন্দ।

এসময়ে বক্তারা বলেন কন্যাশিশুরা বাবা মায়ের বোঝা নন। কন্যাশিশুরাও পারে সমাজকে বদলে দিতে।

ঝিনাইদহে পানিতে ডুবে কিশোরের মৃত্যু

ঝিনাইদহে  পানিতে ডুবে  কিশোরের মৃত্যু


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার হরিশংকরপুর গ্রামে খালের পানি নিষ্কাশন পাইপে পড়ে মোহাম্মদ আলী (১২) নামের এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। মোহাম্মদ আলী ওই গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে। স্থানীয়রা জানায়,দুপুরে মোহাম্মদ আলী খালের পানিতে গোসল করতে নামে।একপর্যায়ে তীব্র স্রোতে নিষ্কাশন পাইপের মধ্যে আটকা পড়ে।

খবর পেয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা পাইপ কেটে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।

কিশোর মোহাম্মদ আলী স্থানীয় একটি মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র ছিল। ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আত্রাইয়ে নৌকার বিজয়ের লক্ষে যুবলীগের পথসভা ও ঝটিকা মিছিল

আত্রাইয়ে নৌকার বিজয়ের লক্ষে যুবলীগের পথসভা ও ঝটিকা মিছিল

মোঃ ফিরোজ হোসাইন, রাজশাহী ব্যুরোঃ নওগাঁ -৬ উপ নির্বাচনে নৌকার বিজয়ের লক্ষে আত্রাই উপজেলা আওয়ামী যুবলীগ আহষানগঞ্জ, কালিকাপুড়,হাটকালুপাড়া ও বিশা ইউনিয়নের বিভিন্ন বাজারে পথসভা ও ঝটিকা মিছিল বেরকরে।

জেলা যুবলীগের সভাপতি এ্যাড. খোদাদাদ খান পিটু এর নির্দেশে আত্রাই উপজেলা আওয়ামী যুবলীগ বিভিন্ন বাজারে পথসভা ও ঝটিকা মিছিল করেছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগের সভাপতি এ্যাড. খোদাদাদ খান পিটু, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শেখ মোঃ হাফিজুল, সাধারণ সম্পাদক মোঃ রাফিউল ইসলাম রাফি, সহ সভাপতি শওকত, সাবেক সাধারন সম্পাদক আমিনুল ইসলাম,  ছাএলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক রবিউল ইসলাম চঞ্চল, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আঃ রউফ রইচ,সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা সহ উপজেলা ও ইউনিয়ন যুবলীগের নেতৃবৃন্দ।

বক্তারা বলেন উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকার কোন বিকল্প নেই, বক্তারা জনগনের মাঝে আওয়ামীলীগ সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরে নৌকায় ভোট চান।

আশাশুনিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান- মোস্তাকিম

 আশাশুনিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান- মোস্তাকিম

আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি  সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ চলতি বছরে আশাশুনি উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্লাব ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে খেলাধুলার সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মোস্তাকিম।এর ধারাবাহিকতায় সোমবার সকালে তিনি নিজস্ব কার্যালয়ে কাদাকাটি ইউনিয়নের মিত্র তেতুলিয়া চলন্তিকা যুব সংঘের নেতৃবৃন্দের হাতে ফুটবল,ভলিবল ও ক্রিকেট সেট সমন্বয়ে খেলার সামগ্রী তুলে দেন। বিতরণ কালে তিনি বলেন, নৈতিক অবক্ষয়, হীনমন্যতা এবং সামাজিক দায়বদ্ধতার অভাবে সমাজে আজ মাদক,সন্ত্রাস ও ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটে  চলেছে। এসকল সমাজবিরোধী অনৈতিক কার্যক্রম প্রতিহত করতে সরকারের পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশহিসেবে তরুণ-যুবকদের এগিয়ে আসতে হবে। তিনি আরও বলেন,বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন প্রজন্মকে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায় আত্মনিয়োগ করতে হবে।দেশের রাজনৈতিক সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভারসাম্য রক্ষার জন্য তিনি  তরুণ, যুবকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর আলম লিটন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ বাচ্চু, কাদাকাটি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আসিফ ইকবাল রিপন, সহ-সভাপতি রানা আহমেদ,চলন্তিকা যুব সংঘের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা,ছাত্রলীগ নেতা মিজানুর রহমান, আশরাফুজ্জামান তাজ প্রমুখ।

হযরত মোহাম্মদ (স.)কে নিয়ে কটুক্তি করায় সাতক্ষীরায় যুবক গ্রেফতার

 হযরত মোহাম্মদ (স.)কে নিয়ে কটুক্তি করায় সাতক্ষীরায় যুবক গ্রেফতার

আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃ মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.) কে নিয়ে কটূক্তি, কুরুচিপূর্ণ ও আপত্তিকর মন্তব্য করায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মিঠুন মণ্ডলকে গ্রেফতার করা হয়েছ।

সেই সাথে,তার ছাত্রত্ব সাময়িকভাবে বাতিল করা হয়েছে। একইসঙ্গে তার ছাত্রত্ব কেন স্থায়ীভাবে বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশও দেওয়া হয়েছে।

এদিকে কটূক্তির ঘটনায় মিঠুন মণ্ডলকে নিজ বাড়ি থেকে আটক করেছে সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশ। তিনি সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার নারিকেলি গ্রামের যুগল মণ্ডলের ছেলে।

জানা গোছে, মিঠুন মণ্ডল তার ফেসবুক পেজে মহানবী (স.) কে নিয়ে কটূক্তি করে স্ট্যাটাস দেন বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নজরে এসেছে। এজন্য সোমবার (১২ অক্টোবর) সকালে যবিপ্রবির উপাচার্যের কার্যালয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটি, শিক্ষক সমিতি ও কর্মকর্তা সমিতির জরুরি সভায় তার ছাত্রত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ ঘটনায় চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। কমিটির আহ্বায়ক হলেন ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন ড. মো. মেহেদী হাসান। কমিটির সদস্যরা হলেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. সুমন চন্দ্র মোহন্ত, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আমজাদ হোসেন, ড. ইঞ্জিনিয়ার এবং সদস্য সচিব কর্মকর্তা সমিতির সহ-সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম। কমিটিকে আগামী ৭ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সভায় যবিপ্রবির ডিন ড. এ এস এম মুজাহিদুল হক, অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস, অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল আমিন, ড. আব্দুল্লাহ আল মামুন, ড. সুমন চন্দ্র মোহন্ত, ড. নাসিম রেজা, ড. মো. মেহেদী হাসান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. ইকবাল কবীর জাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক মো. আমজাদ হোসেন, ড. ইঞ্জিনিয়ার রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. আহসান হাবীব, কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি প্রধান প্রকৌশলী হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

তাকে গ্রেফতার প্রসঙ্গে, সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, সাম্প্রদায়িক উস্কানির অভিযোগে গতকাল গভির রাতে মিঠুন মণ্ডলকে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ।

সাতক্ষীরা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ২৮ বোতল ফেন্সিডিল সহ গ্রেফতার-১

সাতক্ষীরা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ২৮ বোতল ফেন্সিডিল সহ গ্রেফতার-১



আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃ


সাতক্ষীরা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইয়াছিন আলম চৌধুরী এর নির্দেশনায়, এসআই (নিঃ) মোঃ ফরিদ হোসেন এর নের্তৃত্বে এএসআই, জসিম উদ্দিন, এএসআই, প্রদীপ কুমার, কনস্টবল নজরুল ইসলাম ও কনস্টবল মোঃ রাজু কর্তৃক ২৮ বোতল ফেনসিডিলসহ, সাতক্ষীরা  পৌরসভার  মধ্য কাটিয়াস্থ মৃত সামছুল হুদা'র ছেলে মোঃ শফিউল আজম (৪৬) শনিবার গ্রেফতার পূর্বক, বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করেন।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

 নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু




শিপন,নারায়ণগঞ্জঃনারায়ণগঞ্জের সনমান্দী ইউনিয়নের ইদ্দিস মিয়ার পরিবারে বেড়াতে এসে রায়পুর গ্রামের দুই বছরের শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। 


শিশুর পরিবারের  তথ্য মতে  জানা যায়  শিশুটি তার সহপাঠীদের সাথে খেলতে গিয়ে পানিতে পরে মৃত্যু বরণ করেন।


অকাল মৃত্যুতে পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।মেনে নিতে পারছে না তার পরিবার শোকে তার পরিবার যেন হতভঙ্গ।ছোট্ট এই শিশুর আত্বার মাগফিরাত কামনা করেন এলাকাবাসী।

সুন্দরবনের চাদপাই রেঞ্জে ফাদসহ তিন হরিণ শিকারী আটক

 সুন্দরবনের চাদপাই রেঞ্জে ফাদসহ তিন হরিণ শিকারী আটক



মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃসুন্দরবনের চাদপাই রেঞ্জের চরাপুটিয়া এলাকা থেকে বিপুল পরিমান হরিন শিকারের ফাদসহ তিন জনকে আটক করেছে বন বিভাগ। সোমবার (১২ অক্টোবর) সকালে বন সংলগ্ন মরাপশুর খালে একটি নৌকা তল্লাশি করে তাদের আটক করা হয়। পুর্বসুন্দরবন চাদপাই রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা এনামুল হক এতথ্য নিশ্চিত করে জানান, নিয়মিত টহল দেয়ার সময়  একটি নৌকা তল্লাশি করে স্মাটটিম। এসময় বিপুল পরিমান হরিন শিকারের ফাদ পাওয়া যায়। পরে নৌকায় থাকা তিন ব্যাক্তি হরিণ শিকারের বিষয়টি শিকার করে। এসময় সৈয়দ গাজী,ফারুক শেখ,হযরত আলী নামক তিন ব্যাক্তিকে আটক করে স্মাটটিম। আটককৃত ব্যাক্তিরা খুলনা দাকোব  ও বটিয়াঘাটা এলাকার বাসিন্ধা।

সাতক্ষীরা বিনেরপোতা বিসিক শিল্প নগরি এলাকা হতে ফেনসিডিলসহ বিক্রেতা আটক

 সাতক্ষীরা বিনেরপোতা বিসিক শিল্প নগরি এলাকা হতে ফেনসিডিলসহ বিক্রেতা আটক

,


আজহারুল ইসলাম সাদী স্টাফ রিপোর্টারঃসাতক্ষীরা বিনেরপোতা বিসিক শিল্প নগরি এলাকার বাইপাস সড়ক হতে, ট্রাফিক পুলিশের হাতে এক ফেনসিডিল বিক্রেতা আটক হয়েছে।


আটককৃত ওই ফেন্সিডিল বিক্রেতার নাম আলমগীর হোসেন মন্টু। সে লাবসা ইউনিয়নের মাগুরা বৌ বাজার এলাকার বাসিন্দা। 


জানা গেছে, রোববার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিনেরপোতা বিসিক শিল্পনগরীর সামনে মোজারুলের চায়ের দোকানের পাশে দাঁড়িয়ে, মাগুরা বৌ বাজার এলাকার বাসিন্দা ও বিসিক শিল্পনগরীতে অবস্থিত মোস্তফা হ্যাচারীতে কর্মরত আলমগীর হোসেন মন্টু ও তালা উপজেলার নগরঘাটা গ্রামের বিষ্টুপদ সরকারের ছেলে, রনজিত সরকার প্রকাশ্যে দাঁড়িয়ে, ফেন্সিডিল বিক্রি করছিলো। এসময় খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের বিনেরপোতা বাইপাস সড়ক সংলগ্ন সংযোগস্থলে কর্তব্যরত এক ট্রাফিক পুলিশ  ফেন্সিডিল বিক্রিয়কালে, মন্টুকে, হাতেনাতে আটক করে, তার দেহ ও সাথে থাকা হোন্ডা লিবো মটরসাইকেল তল্লাশী করেন। তল্লাশীর এক পর্যায়ে মটরসাইকেলে লুকিয়ে রাখা ৪ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। এরই মধ্যে ফেন্সিডিল বিক্রেতা মন্টুর অপর সহযোগী রনজিত সরকার পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। ট্রাফিক পুলিশ মন্টুর কাছ থেকে ৪ বোতল ফেন্সিডিল ও তার ব্যবহৃত মটরসাইকেলটি জব্দ করে কাটিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজানুর রহমানের কাছে হস্তান্তর করেন। পরে ফেন্সিডিল বিক্রেতা মন্টুকে সাতক্ষীরা সদর থানা পুলিশে সোপর্দ করে, সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আসাদুজ্জামান বিষয় টি নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতারকৃতের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।

শার্শায় নাভারণ বাজারে ব্র্যাক ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের শুভ উদ্বোধন

শার্শায় নাভারণ বাজারে ব্র্যাক ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের শুভ উদ্বোধন

মোঃ ইব্রাহিম হোসন, স্টাফ রিপোর্টারঃ  যশোরের শার্শা থানার নাভারণ বাজারে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড -এর এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।

আজ সোমবার (১২ অক্টোবর) এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে ‍স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্র্যাক ব্যাংকের হেড অব এজেন্ট ব্যাংকিং মোঃ নাজমুল হাসান।

বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন হেড অব অল্টারনেট ব্যাংকিং চ্যানেলস নাজমুর রহিম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ব্র্যাক ব্যাংক যশোর এর এরিয়া ম্যানেজার জনাব মোঃ আবু সাইদ ‍ও টিএম সাইফুল ইসলাম নান্নু। উক্ত অনুষ্ঠানে আয়োজক হিসাবে উপস্থিতে ছিলেন ইকবাল হোসেন, অফিসার, এজেন্ট ব্যাংকিং ডিপার্টমেন্ট, অল্টারনেট ব্যাংকিং চ্যানেলস ডিভিশন।

মনে পড়ে জবির লাল বাসকে

 মনে পড়ে জবির লাল বাসকে

ঢাকার স্নিগ্ধ সকালগুলোতে আমার প্রধান আকর্ষণ ছিল ভার্সিটির লালবাস। খুব ভোরে যখন নগরীর ব্যস্ততায় প্রাণ আসেনি, ঘুম থেকে উঠে পনে ছয়টার মধ্যে বাসা থেকে বের হতাম, ভার্সিটি বাসটা যে ধরতেই হবে!


সাতটার মধ্যেই কুয়াশা ঠেলে দারুস সালামে আসত আমার লালবাস, উত্তরণ-১। যেহেতু আমি ফাস্ট ইয়ারে অর্থাৎ ভার্সিটিতে জুনিয়র তাই বাসে বেশ কিছু সামাজিকতার মাঝ দিয়ে আমাকে যেতে হতো। আর এই সামাজিকতাগুলোই আমার ভীষণ ভালো লাগতো। বাসে উঠেই বড়দের সালাম করা, বড় আপু দাঁড়িয়ে থাকলে তাঁকে বসতে দেয়া, সবার সাথে নিজের পরিচয় করিয়ে নেয়া-এসবই ছিল আমাদের নিত্যদিনের সামাজিকতার অংশ।

সবার মিষ্টি হাসি, গল্পের ছড়াছড়ি, গান, আড্ডা, হৈ-হুল্লোড় সবকিছু খুব উপভোগ করেছি। কত খাবার (বাদাম, চানাচুর, ঝালমুড়ি, আমড়া, পেয়ারা, আচার) সবার সাথে ভগাভাগি করে খেয়েছি, বড় আপুদের থেকে ছিনিয়ে নিয়েছি। 

মাঝে-মাঝে অনেকে অভিনয় করতো, কখনো হরাক সেজে আবার কখনো আমড়া-পেয়ারা-বাদাম বা ইঁদুর-তেলাপোকার ঔষধ  বিক্রেতা সেজে, এতে পুরো বাসে যেন হাসির বন্যা বয়ে যেত। আর এই অভিনয়গুলো মূলত প্রথমবর্ষের শিক্ষার্থীরাই করত। বিভিন্ন বিভাগের সিনিয়র তো বটেই সহপাঠীদের সাথেও পরিচিত হতে খুব ভালো লাগত। এ ছিল জগন্নাথের সব বিভাগ সম্পর্কে জানার এক সুবর্ণ সুযোগ! তাঁদের বিভাগের কার্যক্রম সম্পর্কে জানতাম, আমাদের বিভাগের কথা শেয়ার করতাম। আমার এই নতুন পরিবেশটাতে সবাই খুবই অমায়িক ছিল।


সাধারণত বাসের প্রথমাংশে মেয়েরা আর শেষাংশে ছেলারা বসে। আর অধিকাংশ সময় বাসের শেষের দিকটা থেকেই ভেসে আসত-শ্রাবণের মেঘগুলো জড়ো হলো আকাশে'র মতো আমার কিছু প্রিয় গান। ভাইয়ারা গাইত, সাথে-সাথে আপুরাও, একসময় পুরো বাস সুর মেলাত এইসব গানে। বিশেষ করে ফেরার সময়, জ্যামে পড়ে যখন পরিশ্রান্ত লাগত তখন গানগুলো, বিশেষ করে ফেরার সময়, সারাদিনের ক্লান্তি ভুলিয়ে দিতো, জ্যামকে তখন মোটেও বিরক্তিকর লাগত না। সেই সাথে ক্যাম্পাসের সবার দিনব্যাপী কার্যক্রমের অভিজ্ঞতাগুলো শুনতেও বেশ ভালো লাগত। 

মাঝে-মাঝে আপুদের সাথে বসতাম দরজার সিঁড়িতে, এটাও ছিল এক হৃদয় ছোঁয়া মিষ্টি অনুভূতি!


এছাড়াও আমাদের সমাজসেবী জবিয়ান ভাইদের পথচলতি সময়ে দায়িত্ববোধের জন্য খুব গর্ব হতো তখন তাঁদের নিয়ে। প্রায় সবদিনই বাসে প্রচুর ভীড় থাকত, বিশেষ করে দরজাগুলোতে এই ভীড় প্রকট হতো। অনেক শিক্ষার্থীকেই দাঁড়িয়ে যেতে হতো। এমতাবস্থায়, বাসের সবচেয়ে বেশি ভালো লাগার বিষয় ছিল একটি নিয়ম। তা হলো- অর্ধেক রাস্তা যাঁরা বসে এসেছে, তাঁরা বাকি অর্ধেক রাস্তা দাঁড়িয়ে যাবো, আর এতক্ষণ যাঁরা দাঁড়িয়ে ছিল, তাঁদের বসতে দিবে, এই আসন বিনিময়টা শাহবাগে এসে হতো।


এইভাবেই কাটতো ভার্সিটি বাসে আমার রোমাঞ্চকর মুহুর্তগুলো। দিনশেষে ৬টায় যখন আবার দারুসসালামে নেমে বাসায় ফিরতাম, তখন শারীরিকভাবে ক্লান্ত হলেও মানসিকতায় ছড়িয়ে থাকত "আমার প্রিয় ক্যাম্পাস জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়" আর "উত্তরণ-১" এর কিছু প্রশান্তিদায়ক অনুভূতি। আজকের এই করোনাকালীন সময়ে খুব বেশি মনে পড়ছে সেইসব দিনের কথা সকাল ৭টায় বাস মিস না করার প্রয়াস, আর বিকেল ৩টায় সারি-সারি বাসের ভীড়ে আমার প্রিয় উত্তরণ-১ কে!



মোছাঃ রুকাইয়া মিজান মিমি

সমাজবিজ্ঞান বিভাগ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

শৈলকুপায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১, আটক-৩

শৈলকুপায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১, আটক-৩



সম্রাট হোসেন, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি-ঝিনাইদহের শৈলকুপায় রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি সারুটিয়া ইউনিয়নে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। দফায় দফায় বাড়ি-ঘরে হামলা, পাল্টা হামলা, মামলা চলমান রয়েছে। এসব ঘটনায় প্রতিপক্ষের দয়ের করা মামলা ও পুলিশের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত থাকায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সোমবার সকালে চেয়ারম্যান মাহামুদুল হাসান মামুন ও প্রতিপক্ষ জুলফিকার কায়সার টিপু গ্রুপের সংঘর্ষে সুফিয়া খাতুন (৫৫) নামে ভাটবাড়িয়া গ্রামের এক নারী নিহত হয়েছে। 


পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তার ও কাতলাগাড়ি বাজার দখলকে কেন্দ্র করে সপ্তাহব্যাপী বাজার সংলগ্ন কৃষ্ণনগর, কৃত্তিনগর-ভুলুন্দিয়া, ব্রক্ষ্মপুর, পুরাতন বাখরবাসহ বিভিন্ন গ্রামে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এক তরফা বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। সোমবার কাতলাগাড়ি গরু বাজার দখল ও আধিপত্য বিস্তার করার জন্য চেয়ারম্যান গ্রুপের দলীয় সমর্থকরা বিভিন্ন গ্রামের মত ভাটবাড়িয়া গ্রামেও কর্মী চাঙ্গা করতে তৎপর থাকে। 

সোমবার সকাল ৭টার দিকে টিপু গ্রুপের সমর্থক জালাল উদ্দিনের বাড়ি-ঘরে প্রতিপক্ষ মামুন গ্রুপের লোকজন হামলা চালায়। অতর্কিত হামলায় জালাল উদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়া খাতুন (৫৫) ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। সংঘর্ষে জালাল উদ্দিনের ছেলে সাগর, বিল্লাল, আকবর আলির ছেলে জাহিদুলসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়। এ সময় ভাটবাড়িয়া গ্রামের উভয় পক্ষে বেশকিছু বাড়ি-ঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর লুটপাট করা হয়। পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাগণ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বর্তমানে এলাকায় সংঘর্ষ এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভাটবাড়িয়া গ্রামসহ কাতলাগাড়ি বাজার এলাকায় প্রয়োজনীয় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

দেবিদ্বার চরবাকরে কুমিল্লা বি-বাড়িয়া মহাসড়কে দুর্ঘটনা

 দেবিদ্বার চরবাকরে কুমিল্লা বি-বাড়িয়া মহাসড়কে দুর্ঘটনা




আলমগীর হোসাইন,কুমিল্লা উত্তর জেলা প্রতিনিধিঃগতকাল রাত তিনটার দিকে কুমিল্লা থেকে দেবিদ্বার উপজেলাগামী একটি মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হাড়িয়ে রাস্তার পাশে গাছের সাথে ধাক্কা লেগে যায়। এতে হতহতের কোনো খবর পাওয়া যায় নি, তবে গাড়িটির বেশ ক্ষয় ক্ষতি হয়।


স্থানীয় সূত্রে জানা যায় গাড়িটি কোনো যাত্রি বহন না করাতে তেমন কোনো হতাহতের মুখে পরে নি।


ঘটনাস্থলে বিভিন্ন ব্যক্তির মন্তব্য থেকে যানা যায়, রাত বিরাতে গাড়ি চালানোর জন্য নিদ্রা এসে গেলে এ ধরনের ঘটনাগুলো ঘটে থাকে।


স্থানীয় প্রশাসনের তৎপরতায় দূর্ঘটনা জনিত স্থানে সাবধানে গাড়ি চালনার প্লেকার্ড ছাপিয়ে দেওয়া হয়।

চলতে পথে আমার দেখা চীনা প্রযুক্তি

চলতে পথে আমার দেখা চীনা প্রযুক্তি
“জ্ঞান অর্জনের জন্য প্রয়োজনে সুদূর চীন দেশে যাও” উক্তিটি কমবেশি সবারই জানা। হ্যাঁ আসলেই জ্ঞান অর্জনের জন্য জীবনে অন্তত একবার হলেও চীন দেশ ঘুরে যাওয়া প্রত্যেকের উচিত বলে মনে হয়। প্রযুক্তির ছোয়া নেই এমন কোন জায়গা এখানে খুজে পাওয়া মুশকিল, চীনা প্রযুক্তির সামান্য কিছু নমুনা নিয়ে আজকের আয়োজন।
 
চীন নামটা শুনলেই আমরা বাংলাদেশী সহ আশপাশের অনেক দেশের মানুষ নাক শিটকাই। সেটায় স্বাভাবিক, দেশে কমদামী চীনা পন্যের রমরমা বাণিজ্য দেখে আমরা ভাবি চীন ও এই কমদামী জিনিসের মত নড়বড়ে। কিন্তু বাস্তবতা আসলে মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ। ছোট্ট একটা গল্প দিয়ে শুরু করতে চাইঃ গতবছর আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে একটা আন্তর্জাতিক সম্মেলন উপলক্ষে দেশ থেকে কিছু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে এসেছিলেন। ওনাদের বেশিরভাগই ছিলেন প্রথমবার চীনে এসেছেন এমন। ওনাদের ইচ্ছা ছিল এখান থেকে সস্তায় কিছু চীনা পণ্য কিনে দেশে নিয়ে যাবেন। তাই বলতে গেলে একবারে খালি লাগেজ নিয়ে ওনাদের এখানে আসা এবং কমদামী চীনা পণ্যে লাগেজ ভরে দেশে নেওয়ার ইচ্ছা। স্যাররা ইতোমধ্যে বেশ কিছু উন্নত দেশ ভ্রমন করছেন কিন্তু এবারের অভিজ্ঞতা নাকি তাঁদের ধারনার বাইরে। রাস্তা, ট্রাফিক ব্যবস্থা আর সু-উচ্চ নজর কাড়া বিল্ডিং গুলো স্যারদের খুব বেশি আকর্ষণ করেছিল। স্যারদের নিয়ে সন্ধ্যায় আমরা কয়েকজন দেশি বন্ধু মিলে বের হয়েছিলাম ওনাদের আবাসিক হোটেলের আশপাশের কিছু মার্কেটে একটু ঘুরে বেড়ানোর উদ্দেশ্যে। কিছু শপিং মল, লোকাল মার্কেট ঘোরার পরে স্যাররা কিছুই মেলাতে পারলেন না অন্তত যেগুলো দিয়ে লাগেজের অল্প একটু জায়গাও ভরা যায়। একজন স্যার আমার কানে এসে ফিস ফিস করে বললেন ‘কমদামী কিছু কম্বল, সিট কাপড় আমার খুব দরকার ছিল’ এখানে পাওয়া যাবে কিনা। আমি স্যার কে বললাম ‘এখানে যেগুলোর যেমন দাম দেখলেন সবখানে ওই একই রকম হবে, দামের খুব সামান্য হেরফের হতে পারে’। স্যারেরা বললেন ‘এর থেকে আমাদের দেশেই ভাল, অনেক কম দামে ভালো ভালো চাইনিজ জিনিস পাই’।
 
দেশ থেকে আসা বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যারদের সাথে

আসল বাস্তবতা হচ্ছে এটায়। চীনারা যেদেশ যেমন দামে যেমন পণ্য চায় ঠিক সেই পরিমান পন্য শুধু সে দেশের জন্যই তৈরি করে রপ্তানি করে। রপ্তানি বাণিজ্যে সব দেশকে টপকে নিজেদের বিশ্বের এক নম্বরে রাখার চীনা সরকারের এটা একটা অভিনব কৌশল বললেও ভুল হবেনা। এদের নিজেদের ব্যবহৃত জিনিসের গুণগত মান ওইসব পণ্যের ধারে কাছেও নেই। সবকিছু লিখে শেষ করার মত ধৈর্য এবং সময় সত্যিই অপ্রতুল তাই কিছু জিনিস তুলে ধরলামঃ
 
ট্রাফিক ব্যবস্থা ও গণ পরিবহনঃ চীনাদের ট্রাফিক ব্যবস্থা সত্যিই নজর কাড়ার মত। রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশের দেখা মেলেনা তবে অফিস টাইমে কিছু ট্রাফিক পুলিশ তাদের নির্দিষ্ট স্থানে দাঁড়িয়ে থাকে। তারপরে ও একজন ব্যক্তি ট্রাফিক সিগন্যাল অমান্য করে চলেনা। প্রত্যেক সিগন্যাল এবং সমস্ত রাস্তা সিসি ক্যামেরার আওতাধীন, তাই ট্রাফিক নিয়ম অমান্যকারীকে তাৎক্ষনিক ভাবে ক্যামেরায় ডিটেক্ট করে উপযুক্ত শাস্তির বিধান রয়েছে। সেজন্য বাধ্যতামূলক ট্রাফিক আইন মেলে চলা সকলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব বলে এরা সবাই মনে করেন। রাস্তায় হাজার হাজার গাড়ি কিন্তু কোন হর্ন এর শব্দ শোনা যায়না। পথচারী যদি একটু অন্যমনস্ক হয়ে রাস্তা দিয়ে হাটেন বা রাস্তা পার হন তাহলে প্রাইভেট কার, বাস সহ অন্যান্য যানবাহনের চালক নিজেরা অপেক্ষা করে পথচারীকে রাস্তা পারের সুযোগ করে দেয়। রাস্তায় বাস, ট্যাক্সি, ই-বাইক, সাইকেল চালানোর সময় কারো ভিতর কোন প্রতিযোগিতা (কে কার আগে যাবে) নেই।
ট্রাফিক সিগনাল সহ সমস্ত রাস্তায় কিছুদূর পর পর এমন ক্যামেরা দেখতে পাওয়া যায়
কোন হেল্পার বা অন্য কারো সাহায্য ছাড়া বিশাল বড় বড় বিলাস বহুল পাবলিক বাস একজন মহিলা বা পুরুষ চালকের তত্ত্বাবধায়নে যথাসময়ে গন্তব্যে আসা যাওয়া করছে। প্রতিবার রাউন্ড দেওয়ার পরপরই গ্যারেজে ঢুকলে দায়িত্বরত ব্যক্তি ১-২ মিনিটের ভিতর বাস গুলোকে ধুয়ে মুছে একবারে পরিস্কার করে দিচ্ছে। সবগুলো বাসে জিপিএস ব্যবস্থা চালু করা তাই চালক ইচ্ছে করলেই একজায়গায় দাঁড়িয়ে সময় ক্ষেপণ করবে সে সুযোগ নেই। বাসগুলো সবই শীততাপ নিয়ন্ত্রিত, ভিতরে টিভি পর্দায় সার্বক্ষণিক বিভিন্ন ভিডিও চলে এবং প্রতিটা স্টপেজ আসার আগেই টিভি পর্দায় যাত্রীদের দের সতর্কতা মূলক ঘোষণা দেওয়া হয়। ১ ইউয়ান (~১২.৫ টাকা) দিয়ে ৫০-৬০ কি.মি. মত যাওয়া যায়। তবে যেখানেই নামবেন ওটাই দিতে হবে সেটা এক স্টপেজ পরে হলেও (অন্য প্রদেশে কম বেশি হতে পারে)। বাসের দরজা গুলো খোলা এবং বন্ধ হওয়া চালক তার সিটে বসেই নিয়ন্ত্রণ করে। সামনের দরজায় যাত্রী ওঠা এবং পিছনের টা নামার কাজে ব্যবহৃত হয়। যাত্রী ওঠার পথে রাখা QR কোড মোবাইলে স্ক্যান করে, ব্যাংক কার্ড পাঞ্চ করে বা নির্দিষ্ট বক্সে টাকা রেখে ভাড়া পরিশোধের ব্যবস্থা আছে। প্রতিটা বাসে কমপক্ষে ৪ থেকে ৫ টা ক্যামেরা আছে যেগুলোর মাধ্যমে সমস্ত যাত্রীদের ওঠানামা, ভাড়া পরিশোধ, চালকের সতর্কতা সার্বক্ষণিক কর্তৃপক্ষ তদারকি করেন। বাসে ওঠার পরেই সিটে বসার জন্য কেউ হুড়োহুড়ি করেনা বরং সবাই দাঁড়িয়ে থাকতেই সাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।
অত্যাধুনিক সব বিলাসবহুল পাবলিক বাসের একাংশ
মাটির নিচে আছে আরেক পৃথিবী সেখানে মেট্রোরেল গুলো প্রতি ৫ মিনিট পরে পরে ঘুরে আসছে। খুব অল্প সময়ে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছাতে মেট্রোরেলের জুড়ি মেলা ভার। কর্মস্থল থেকে বাসা শত শত মাইল দূরে হলেও মেট্রোরেলের সাহায্যে খুব সহজেই নির্দিষ্ট সময়ে সেখানে পৌছে যাওয়া যায়। প্রতিটা মেট্রোরেলের প্রবেশদ্বার, বের হওয়ার পথে সার্বক্ষণিক চলন্ত সিঁড়ি, পায়ে হেঁটে নামার সিঁড়ি, পাশাপাশি শারীরিক প্রতিবন্ধীদের হুইল চেয়ার নিয়ে ওঠা নামার সুবিধা সহ শীততাপ নিয়ন্ত্রনের মাধ্যমে প্রতিটা মেট্রো স্টেশনে টিকিট কাটা থেকে শুরু করে বের হয়ে আসার আগ পর্যন্ত আছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ছোয়া। কোনরকম ঝুক্কি ঝামেলা ছাড়া নির্দিষ্ট সময়ের ভিতর কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য মেট্রোরেল ব্যবহার করা যাত্রীর সংখ্যা অন্যান্য গনপরিবহনের যাত্রীর সংখ্যার চেয়ে ঢের বেশি। 
সুসজ্জিত মেট্রোরেলের ভ্রমনের খন্ডচিত্র
রোড এন্ড হাইওয়েঃ রাস্তাগুলো প্রায় সবজায়গাতেই ৮ লেনের। প্রত্যেক রাস্তাতেই ই-বাইক, সাইকেল চালানোর আলাদা লেন সহ পায়ে হেঁটে চলার ব্যবস্থা আছে। সব হাইওয়ে গুলো এক্সপ্রেস ওয়ের আদলে তৈরী, মানে কোথাও গাড়ী না থামিয়ে নির্দিষ্ট লেন ধরে শয়ে শয়ে মাইল উচ্চ গতিতে যাওয়া যায়। হাইওয়ের কিছু কিছু জায়গায় টোল দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। টোল গেট গুলো আসার মাইল খানিক আগেই চালকের মোবাইলের এপসে সিগন্যাল দেয় এবং টোলের ভাড়া মোবাইলে পরিশোধ করলেই গাড়ী গেটে আসার কিছুটা আগেই নিজ থেকেই খুলে যায়। যাতে করে ওখানে আসার পরে সময় নষ্ট না হয়। চীনের হাই স্পিড (বুলেট ট্রেন) ট্রেনের কথা সবারই জানা। যেটাতে রওনা হয়ে মানুষ বিমানের মত দ্রুত গতিতে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যেতে পারে। এদের এখানে আলাদা ভাবে কোন বর্ষা মৌসুম না থাকায় গ্রীষ্মের চেয়ে শীতের দিনে বৃষ্টির আধিক্য দেখা যায়, সেজন্য গ্রীষ্ম মৌসুমে হাইওয়ে সহ সমস্ত রাস্তা ঘাটে বেশি ধুলো ময়লা জমে। এই ধুলো ময়লা পরিস্কার করার জন্য সবখানেই অত্যাধুনিক কিছু গাড়ী আছে। গাড়ী গুলোর সাহায্যে রাতের শেষ প্রহরে সমস্ত রাস্তা ঘাট ধুয়ে মুছে এমনভাবে পরিস্কার করে দেখলে মনে হবে রাস্তা গুলো এইমাত্র তৈরি করা হয়েছে। রাস্তায় পড়ে থাকা গাছের ঝরা পাতা বা অন্যান্য ময়লা আবর্জনা পরিস্কারের জন্য সেন্সরের সাহায্যে স্বয়ংক্রিয় ভাবে চলা কিছু  মেশিন আছে, সেগুলো কোন চালক বা অন্য কারো সাহায্য ছাড়া নিজ থেকেই আপন মনে রাস্তা পরিস্কার করে চলে। ভোরের আলো ফোটার আগেই এসব কাজ গুলো সম্পন্ন হয়।    
খুব অল্পদিনের ভিতরেই সুউচ্চ কংক্রিটের পাহাড় কেটে বানানো এই রাস্তা
কংক্রিটের সুউচ্চ পাহাড় কেটে তার ভিতর দিয়ে চলে গেছে মাইলের পর মাইল টানেল (গাড়ি যাওয়ার রাস্তা), মেট্রো রেলের লাইন এবং সর্বোপরি পাহাড় কেটে অত্যাধুনিক আবাসান বানানোর চিত্র সবসময় চোখে পড়ে। একদিন পথে যেতে যেতে দেখতে পেলাম পাহাড়ের তলদেশে ডিনামাইটের বিশাল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পাহাড় কাটার কাজ শুরু হয়েছে এবং মাস দুই পরে সেই সুউচ্চ কংক্রিটের পাহাড় কেটে পরিস্কার করে সেখান থেকে চলে গেছে দৃষ্টিনন্দন রাস্তা। কোন এলাকায় জনবসতি গড়ে তুলতে চাইলে আগে থেকে জনগণের সমস্ত চাহিদা যেমন রাস্তা-ঘাট, বাজার, পানি-বিদ্যুৎ লাইন, যোগাযোগের যথাযথ ব্যবস্থা শেষ করেই তারপরে সেখানে মানুষ বসবাসের অনুমতি মেলে। নির্মাণ কাজের দিকে খেয়াল করলে দেখা যায় খুবই কম সংখ্যক শ্রমিকের উপস্থিতিতে অত্যাধুনিক সব বিশালাকৃতি যন্ত্রের সাহায্যে অল্প সময়ের ভিতর সুউচ্চ অট্টালিকা, দীর্ঘ সেতু, দৃষ্টি নন্দন হাইওয়ে সহ নজর কাড়া সব স্থাপত্য তৈরি হচ্ছে। নদীর পাড় গুলো বড়বড় কংক্রিটের পাথর দিয়ে এত সুন্দর ভাবে বাঁধানো যে হাজার বছরেও সেগুলো কিছু হওয়ার নয়। প্রতিটা নদীর পাড় দিয়ে চলে গেছে দৃষ্টিনন্দন সবুজ অরণ্যে ঘেরা অত্যাধুনিক পার্ক এবং মানুষের হাঁটার রাস্তা।
সব নদীর পাড় গুলো এমন কংক্রিট দিয়ে বাঁধানো কয়েক স্তরের বাঁধ
সার্বক্ষণিক সিসি ক্যামেরার আওতায়ঃ চুরি-ছিনতাই, বাটপারি, ব্লাকমেইল ছোট বড় যেকোন অপরাধ করে এখানে কেউ রেহায় পায়না তাই ওগুলো সংঘটিতও হয়না। হবে কি করে? প্রতিটা মানুষের প্রতিটা পদক্ষেপ ক্যামেরায় রেকর্ডিং হচ্ছে। নিজের বাসা থেকে বের হয়েই আপনি ক্যামেরায় ট্রাকিং হতে থাকবেন আর সেটা চলবে যতক্ষণ না আবার আপনি বাসায় ফিরছেন ততক্ষণ। কোথায় নেই ক্যামেরা? প্রতিটা অলিগলি, মাঠ, পাহাড়, নদীর কিনারা, পার্ক, সুপার মল সবখানেই ক্যামেরা আপনাকে ডিটেক্ট করবে। পৃথিবীর অন্যন্য উন্নত দেশে এত ক্যামেরা ট্রাকিং সিস্টেম আছে কিনা আমার জানা নেই। তাই এখানে কারো কোন জিনিস হারানো গেলে সেটা খুজে বের করা যত সহজ সাথে মানুষের নিরাপত্তাও পুরোপুরি নিশ্চিত। সবজায়গাতেই মানুষের চলাচল নিরাপত্তার চাঁদরে ঘেরা এবং কোন রকম অস্ত্রের ব্যবহার ছাড়াই নিরাপত্তার বাহিনীর সদস্যদের (পুলিশ, সেনাবাহিনী) টহল চোখে পড়ে। সেজন্য একজন মহিলাও এখানে রাত ১২ টার পরে আরামচে সাইকেল চালিয়ে নিশ্চিন্তে বাড়ি ফেরে।  
রাস্তা সহ সমস্ত অলিগলিতে সেট করা অত্যাধুনিক এসব ক্যামেরা আপনার চলাফেরাকে সার্বক্ষণিক রেকর্ড করবে
কেনাকাটাঃ শ্রমিক থেকে উচ্চবিত্ত সবাই স্মার্ট ফোন (আইফোন, স্যামসাং, অপ্প, হুয়াউয়ে) ব্যবহার করে। কাছে একটা ফোন থাকলে কেনাকাটা বা দৈনন্দিন প্রয়োজন মেটানোর জন্য আর কোন কিছুর দরকার পড়ে না কারন এখানে ক্যাশ টাকার কোন লেনদেন নেই বললেই চলে। তাই সেটা যত বড় বা ছোট পরিমানের লেনদেন হোক না কেন। সরাসরি ব্যাঙ্কের সাথে যুক্ত উইচ্যাট (চাইনিজদের সর্বাধিক ব্যবহৃত সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম), আলি-পে (আলিবাবা পরিচালিত) এপস এর মাধ্যমে সমস্ত কেনাকাটা কোন ঝামেলা ছাড়াই মোবাইল ফোনে হয়ে যাচ্ছে। এই দুটো মোবাইলের এপস এর কথা একটু আলাদা ভাবে বলতেই হয়। এমন কোন দরকারী কাজ নেই যে এই এপস দুটোর সাহায্যে করা যায় না। যেকোন পরিবহনের (বিমান থেকে ট্যাক্সি) অগ্রিম টিকিট বুকিং, হোটেল বুকিং, রেস্টুরেন্টে সিট বুকিং, প্রতিটা বিশ্ববিদ্যালয়ের যাবতীয় আর্থিক লেনদেন সহ অন্যান্য অনেক সুবিধাদি, এছাড়া সামাজিক যোগাযোগের সবচেয়ে সহজ এবং জনপ্রিয় মাধ্যম সহ যেকোন সময় যেকাউকে যেকোন পরিমান তাৎক্ষনিক আর্থিক লেনদেনের নির্ভরযোগ্য দুইটি এপস হচ্ছে উইচ্যাট এবং আলিপে। প্রতিটা চীনা নাগরিকের এই এপস দুটো ব্যবাহারের মাধ্যমে দৈনন্দিন জীবনকে অনেক বেশি ছন্দময় এবং সহজ করে দিয়েছে।
রাস্তার পাশে সুসজ্জিত ভাবে সাজানো ব্যাটারী চালিত ই-বাইক
অনলাইন শপিং বা অন্যান্য যেকোন কেনাকাটা করার জন্য শুধু একটা মোবাইল ফোনই যথেষ্ট এবং এর ফলে যে সুবিধাগুলো আছে সেটা হলঃ নেই টাকা ভাংতির ঝামেলা, ছেড়া অচল এবং জালটাকার ঝুক্কি, সর্বপরি মানিব্যাগ নেওয়ার ঝামেলা। টাওবাও, টিমল, ফিনদউদউ, জে ডি ডট কম নামে কিছু অনলাইন শপ আছে যেগুলোর মাধ্যমে ঘরে বসে সুই থেকে শুরু করে প্রাইভেট কার ও কেনা যায়। ঘরে বসে অর্ডার করার এক থেকে দুই তিন দিনের ভিতর (নির্ভর করে অর্ডারকৃত দোকানের দূরত্বের উপর) ডেলিভারি পাওয়া যায়, নেই কোন দরদামে ঠকার ভয়। কারন দাম যাচাই করে এবং গুণগত মান দেখে কেনা যায়। ডেলিভারি পাওয়ার পর ক্রয়কৃত মালামালে কোন ত্রুটি (পরিবহণ জনিত কারণে ভেঙে যাওয়া বা পণ্যের গুণগত মানের পরিবর্তন হলে) থাকলে সেটা বিনা পয়সায় পরিবর্তন অথবা টাকা ফেরত নেওয়ার সুযোগ আছে। সুপার মল থেকে শুরু করে ছোটখাট প্রায় সব রকমের দোকানের হোম ডেলিভারি দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। তাই সকালের নাস্তা, দুপুরের এবং রাতের খাবার থেকে শুরু করে যেকোন প্রয়োজনীয় জিনিস মোবাইলে অর্ডার করার পরপরই খুব অল্প সময়ের মধ্যে আপনার বাসায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য প্রত্যেক দোকানের কিছু কর্মী নিয়োজিত আছে। 
সবরকমের ইন্টারনেট ডাটা এখানে অনেক সাশ্রয়ী হওয়ায় যেকেউ সহজে ভালো মানের ফাইভ জি (5G) নেটওয়ার্ক সেবা পেয়ে থাকে। ২৯ ইউয়ান অর্থাৎ দেশী টাকায় ~৩৫০ (আমি উক্ত প্যাকেজ ব্যবহার করি, অন্যান্য ক্ষেত্রে সামান্য কিছু কম বা বেশি হতে পারে) এর প্যকেজ দিয়ে সারামাস নির্বিঘ্নে আনলিমিটেড ফোন কল এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায়। কারণ ডিজিটালাইজড সবকিছুকে সবার নির্বিঘ্নে উপভোগ করার জন্য সার্বক্ষণিক ইন্টারনেট সেবা অতীব জরুরী।
সব সবজি গুলোর এমন বাম্পার ফলন চোখে পড়ে
চাইনিজ কৃষিঃ কৃষিতে এদের অভিনব সাফল্য। পরিসংখ্যান ঘাটলে দেখা যায় সীমিত চাষযোগ্য কৃষি ভূমি নিয়ে এই বিশাল জনসংখ্যার দৈনন্দিন খাদ্য চাহিদা মেটানো খুবই কঠিন এবং চ্যালেঞ্জের। তাই বাধ্য হয়েই কিছুটা ভিন্ন ধাঁচের উন্নত কৃষি নির্ভর পদ্ধতি এদের অনুসরণ করা লাগে। কৃষি জমি প্রস্তুত, বীজ বপন থেকে শুরু করে ফসল কেটে প্যাকেটজাত করা সবটায় আধুনিক যন্ত্রপাতির ছোয়ায় খুবই সহজে হয়ে যাচ্ছে। চাহিদার তুলনায় চাষ যোগ্য কৃষি জমির অপ্রতুলতার কারনে বাধ্য হয়ে এরা হাইব্রিড শাকসবজি চাষ করে। একবার আমাদের পাশের একটা কৃষি ফার্মে গিয়ে দেখেছিলাম সব সবজি গাছ গুলোতে বাম্পার ফলন, সবজির ভারে গাছগুলোর মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর ক্ষমতা টুকু নেই। কৃষি জমি থেকে শুরু করে সব জমাজমি সরকারের তত্ত্বাবধায়নে থাকে, সরকার থেকে নির্দিষ্ট সময়ের লিজ নিয়ে তবেই কৃষক সহ অন্যান্য জনগণ ব্যবহারের অনুমতি পায়। সেজন্য জমাজমি নিয়ে কারো ভিতর কোন বিরোধ নেই।
 
চাইনিজ সবজি বাগানের একাংশ

পরিবেশ বান্ধব ই-বাইক, সাইকেল, প্রাইভেট কারঃ রাস্তার দুইপাশ দিয়ে রাখা আছে বিভিন্ন কোম্পানির প্রদান করা সারি সারি ই-বাইক, সাইকেল আর প্রাইভেটকার। সবগুলোই সেলফ সার্ভিস মানে নিজেদের ড্রাইভ করতে হবে, মোবাইলের এপসের মাধ্যমে পরিবহনের গায়ে লাগানোQR কোর্ড স্ক্যান করলেই স্বয়ংক্রিয় ভাবে লক খুলে যায়। তারপর পথচারী নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌছিয়ে সেগুলোকে আবার লক করে রাখে এবং যাতে করে অন্য যেকেউ আবার সেটাকেপুনরায় ব্যবহার করতে পারে। প্রাইভেট কার ও একই ভাবে রাস্তার পাশে নির্দিষ্ট স্থানে পার্ক করে রাখা আছে, যারা ফ্যমিলি সহ একটু দূরে কোথাও যেতে চায় তাদের ক্ষেত্রে এটা খুবই উপযোগী। তবে সেক্ষেত্রে অবশ্যই চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা লাগবে।
রাস্তার দুপাশ দিয়ে সারিবদ্ধ ভাবে রাখা আছে এসব সাইকেল
পাবলিক বাস, ব্যাক্তিগত গাড়ী, ই-বাইক, সাইকেল এর অধিকাংশই ব্যাটারী চালিত অর্থাৎ পরিবেশ বান্ধব। প্রতিটা কোম্পানির বেশ কিছু কর্মী আছে, তারা এপসের মাধ্যমে জানতে পারেন সাইকেল বা গাড়ীগুলো কোথায় রাখা আছে। তাদের মাঝরাতের ডিউটি হল, প্রতিটা সাইকেল, ই-বাইক, গাড়ীগুলো আবার জনবহুল এলাকার নির্ধারিত স্থানে রেখে যাওয়া এবং ব্যাটারী পরিবর্তন করে ফুল চার্জের ব্যাটারী দিয়ে যাওয়া। যাতে করে অফিস টাইমে পথচারীরা সবাই পর্যাপ্ত সংখ্যক পরিবহন হাতের কাছে পায়। এগুলোর ভাড়াও খুব কম এবং স্ক্যান করার পর থেকেই ভাড়া কাটা শুরু করে আর লক করলেই বন্ধ হয়। সাইকেল, ই-বাইকের ক্ষেত্রে ঘন্টায় ১-২ ইউয়ান এর মত আর গাড়ীর ক্ষেত্রে সেটা দূরত্ব ও সময়ের উপর নির্ভর করে।
রাস্তার পাশ দিয়ে অল্প দুরুত্ব পরপর নির্দিষ্ট স্থানে রাখা সেলফ সার্ভিস প্রাইভেটকার
কর্মক্ষেত্রে নারীরাঃ রাস্তায় বা বিভিন্ন শপিং মলে সবখানে মহিলাদের আধিক্ষ্য দেখা যায়, এগুলো দেখলেই সহজেই আচ করা যায় এখানে মহিলারা অনেক বেশি কর্মক্ষম। সমস্ত দোকান পাট, বড় বড় শপিং মল, বাস, ট্রাক, মেট্রো সবকিছু মহিলাদের তত্ত্বাবধায়নে চলে। নির্মাণ কাজের শ্রমিক হিসাবেও পুরুষের পাশাপাশি নারীদের অধিক উপস্থিতি লক্ষনীয়। একজন মহিলা যখন কয়েক টন মালামাল সহ বিশাল আকৃতির ট্রাক নিজ হাতে দক্ষতার সাথে  চালনা করে নিয়ে যায় তখন সহজেই অনুমেয় মহিলারা এখানে কতটা কর্মক্ষম।
 
বিনোদনের জন্য পার্ক গুলোতে আছে বাচ্চাদের ফ্রি রাইড
পাবলিক পরিবহন এবং পাবলিক প্লেসে (পার্কসহ বিভিন্ন ঘোরার জায়গা) কোথাও হকারস দেখতে পাওয়া যায়না। কোথাও কোন ভিখারি চোখে পড়েনি তবে মাঝেমধ্যে রাস্তার পাশে জনবহুল কিছু এলাকায় শারীরিক ভাবে অক্ষম ব্যক্তিদের বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র (ভায়োলিন, বাঁশি ইত্যাদি) বাজিয়ে বা নিজের গলায় স্পিকারে গান করতে দেখেছি। কারও মনে চাইলে তাদের সামনে রাখা QR  কোর্ড মোবাইলে স্ক্যান করে কিছু টাকা দিয়ে চলে যাচ্ছে। 
হাটার জন্য সব পার্কে আছে সবুজে ঘেরা দৃষ্টিনন্দন রাস্তা
দেশকে উন্নতির দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে যেটা সবচেয়ে বেশি উপযোগী সেটা হল রিসার্চ এবং টেকনোলজি এবং এটাতে ও চীনারা এখন বিশ্বের মধ্যে এক নাম্বারে অবস্থান করছে। একজন গবেষক, বিজ্ঞানী, শিক্ষক কে এরা অনেক বেশি মূল্যায়ন করে। প্রায় সর্বক্ষেত্রেই বেশিরভাগ উন্নত দেশকে টপকে যাওয়া চীনের এখন শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র।
নদীর পাড় গুলোর পাশ দিয়ে চলে গেছে পায়ে হেঁটে চলার রাস্তা
কিছু খারাপ দিকের ভিতরে এরা সারাক্ষনই মোবাইলে বিজি থাকে, সেটা রাস্তা পারাপার, গাড়ি চালানো, খাওয়া বা অন্য যেকোন সময় হতে পারে। ইংরেজি প্রয়োজন না হওয়ায় এরা খুব কমই ইংরেজি পারে কারন ছোট থেকে এদের ইংরেজি শেখানো হতনা (বর্তমানে ভিন্ন) তাই ইংরেজির স্তরটা এদের অনেক নিচে। সমস্ত সফটওয়্যার, এপস সবকিছু নিজেদের ভাষায় ব্যবহার উপযোগী, এজন্য এসবের কোনকিছুতে এদের ইংরেজির দরকার পড়ে না। সামান্য হাই-হেলো, ইয়েস-নো বলার মতও ইংরেজি বেশিরভাগ লোকের জানা নেই। সেজন্য চাইনিজ ভাষা না জেনে বিদেশী নতুন কেউ আসলে প্রথম প্রথম তাকে একটু বিপাকেই পড়তে হবে। চীনে গুগল ব্যবহারে অনুমতি নেই, তাই যেকেউ এখানে আসলে গুগল বা গুগলের কোন এপস (ফেসবুক, জিমেইল, গুগল স্কলার, প্লে স্টোর ইত্যাদি) ব্যবহার করতে পারেনা। সেক্ষেত্রে VPN ব্যবহার করে দরকারী গুগল সম্পর্কিত কাজ সেরে নিতে হয়। 
কর্মসংস্থানের অভাব, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, রাজনৈতিক অস্থিরতা, ঘুষ, দুর্নীতি, ব্যক্তি স্বার্থের চিন্তা যেকোন দেশের সার্বিক উন্নয়নের প্রধান অন্তরায় গুলোর মধ্যে অন্যতম বলে আমার মনে হয়। চীন বিশ্বের সর্বাধিক জনবহুল আমাদের ভূখণ্ডের খুবই কাছে অবস্থিত প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে অনেক এগিয়ে একটি রাষ্ট্র। আমাদেরও আছে বিপুল জনশক্তি, অপার সম্ভবনাময় ভবিষ্যৎ তাই আমরাও একদিন পাশ্চত্যসব উন্নত দেশের মত উন্নত থেকে উন্নত তর বিশ্বের দিকে এগিয়ে যাব এ আশাটুকু করতেই পারি। সকলের শুভ কামনায়। 


লেখকঃ অজয় কান্তি মন্ডল
গবেষক
ফুজিয়ান এগ্রিকালচার এবং ফরেস্ট্রি ইউনিভার্সিটি
ফুজিয়ান, চীন।

দিনাজপুরে জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আলোচনা সভা অনুষ্ঠান

 দিনাজপুরে জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আলোচনা সভা অনুষ্ঠান

 



মামুনুর রশিদ, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ জাতীয় শ্রমিক লীগ দিনাজপুর জেলা শাখার উদ্যোগে জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। শ্রমজীবী মানুষের দাবি আদায়সহ অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯৬৯ সালের ১২ অক্টোবর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গঠিত হয় জাতীয় শ্রমিক লীগ। এই উপলক্ষ্যে দিনাজপুর শ্রমিক লীগ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ, বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা এবং কেক কেটে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ইমদাদ সরকার। 

১২ অক্টোবর সোমবার সিএসডি রোডস্থ জাতীয় শ্রমিক লীগ দিনাজপুর জেলা শাখা কার্যালয় প্রাঙ্গনে জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. ইমদাদ সরকার বলেন, বর্তমান সরকার শ্রমিকদের স্বার্থের বিষয়ে আন্তরিকতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়া বাংলাদেশ আজ সুখী সমৃদ্ধশালী রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। দেশের শ্রমজীবী মানুষেরা আজ নিজেদের অধিকার আদায় করে স্বাচ্ছন্দে জীবন যাবন করতে পারছে। মানুষের আয়ের পরিমান বেড়েছে। তিনি বলেন, শ্রমিকরাই সভ্যতার চালিকাশক্তি। পৃথিবীকে মানুষের বাসযোগ্য করা, উন্নততর জীবন ও পরিবেশ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে শ্রমজীবী মানুষের ভূমিকাই প্রধান। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সত্য, এই শ্রমজীবী মানুষরাই যুগ যুগ ধরে চরম বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। 

জেলা শ্রমিকলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. তরিকুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রায়হান কবীর সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম খালেকুজ্জামান রাজু, জেলা ট্রাক, ট্যাঙ্কলরি, কাভার্ড ভ্যান, ট্রাক্টর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. আলতাফ হোসেন ও জেলা ওলামালীগের সভাপতি মাওঃ মো. সওকত আলী। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. সোহেল, সাধারণ সম্পাদক মো. আইয়াজ নবী জুয়েল, জেলা মহিলা শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শরিফা বেগম, সাধারণ সম্পাদক লুনা বেগমসহ জেলা শ্রমিক লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। 

আলোচনা সভার পূর্বে ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে জেলা শ্রমিক লীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয় থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে  শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে জেলা প্রশাসন কার্যালয় চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি করেন। এরপর কেক কেটে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

আদিবাসী ছাত্রী রুখিয়া রাউৎ হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

আদিবাসী ছাত্রী রুখিয়া রাউৎ হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন





মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ আদিবাসী ছাত্রী রুখিয়া রাউৎ ধর্ষন ও হত্যার বিচারের দাবীতে দিনাজপুরে মানববন্ধন করেছে আদিবাসী শিক্ষার্থীরা। 

সোমবার বেলা ১২টায় দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সামনে আদিবাসী বিভিন্ন ছাত্র ও যুব সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন থেকে রুখিয়া রাউৎ হত্যার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। 

ওরাঁও ছাত্র সংগঠন, সান্তাল স্টুডেন্টস ইউনিয়ন, নর্দান আদিবাসী ছাত্র ঐক্য জোট, বাংলাদেশ খ্রিষ্টান যুব এসোসিয়েশন, আদিবাসী জাতীয় নারী পরিষদসহ আদিবাসী বিভিন্ন ছাত্র ও যুব সংগঠরেনর প্রতিনিধিরা অংশ নেয়।

উল্লেখ্য রংপুর কারমাইকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী রুখিয়া রাউতকে কথিত প্রেমিক আনিসুর রহমান ও তার দুই সহযোগি রুখিয়াকে হত্যা করে পার্বতীপুর মধ্যপাড়া- রংপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশের শালবাগানে ফেলে পালিয়ে যায়। ৬ অক্টোবর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে এবং আনিসুরসহ দুই সহযোগিকে গ্রেফতার করে। 

পটিয়ায় ব্রাদার্স ক্লাবের অর্থ সম্পাদক এর জন্মদিন পালন

পটিয়ায় ব্রাদার্স ক্লাবের  অর্থ সম্পাদক এর জন্মদিন পালন

সেলিম চৌধুরী স্টাফ  রিপোর্টারঃ- পটিয়া উপজেলার  ১৩ নং দক্ষিণ ভুষি ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগর নেতা এবং খান মোহনা    ৩ নং ওয়ার্ডেে ব্রাদার্স ক্লাবের অর্থ সম্পাদক মোঃ ছোটনের শুভ জন্মদিন গতকাল রবিবার পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে আয়োজিত  আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন ১৩ নং দক্ষিণ ভুষি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা যুব সমাজের অহংকার গরিব দুঃখী মানুষের আপনজন মোঃ মঞ্জুরুল   ইসলাম মনজু। আরো উপস্থিত ছিলেন পটিয়া পৌরসভা আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের সভাপতি মোঃ শফিকুল ইসলাম শফি,  সাবেক ছাত্র নেতা মোঃ শাহা আলম খোকন।  মোঃ ওয়াহিদুর ইসলাম মিন্টু । খান মোহনা ৩ নং ওয়ার্ড যুব লীগের সভাপতি  মোঃ ইকবাল হোসেন। পটিয়া পৌরসভা সুচক্রদন্ডী ২ নং ওয়ার্ড বাংলাদেশ  আওয়ামী মুক্তি যুোদ্ধা প্রজন্মলীগের সভাপতি শিবু রাম দে। পৌরসভা ২ নং ওয়ার্ড  আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবু সুভ্রত দে। আওয়ামী লীগ নেতা পুষ্পেন। প্রদাপ দার্শ  ছাত্র লীগ নেতা মোঃ মুরাদ হোসেন সহ আরো অনেক নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন। এসময় বক্তারা ছোটন এর দীর্ঘ আয়ু কামনা করে বিশেষ মোনজাত করা হয়।