ওলামা মাশায়েখ পরিষদের তিন আলেমের জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা সভা

ওলামা মাশায়েখ পরিষদের তিন আলেমের  জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা সভা


টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি: জাতীয় ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদ খুলনা দৌলতপুর থানা শাখার উদ্যোগে আল্লামা শাহ আহমাদ শফী রহ., আল্লামা আজিজুল হক রহ., মাওলানা সৈয়দ ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এই তিন মনীষীর জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা সভা এবং দোয়া মাহফিল আজ বৃহস্পতিবার (১৫ ই অক্টোবর) বিকাল ৩ টায় থানা সভাপতি মাওলানা ইলিয়াস মাঞ্জুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক মাওলানা মাহমুদুল হাসানের পরিচালনায় দৌলতপুর ৪নং ওয়ার্ড কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। 


আলোচনায় অতিথিবৃন্দ বলেন, এই তিন মহান ব্যাক্তির শূন্য স্থান পূরণ হওয়ার নয়। আমাদের পূর্বসূরিরা এক সাথে শিক্ষা, জনসেবা, সমাজ সংস্কার ও মুসলিম উম্মাহর আমল আখলাক দুরস্ত করার জন্য আচরন মেহনত করে গিয়েছেন। 

আলোচনা সভায় হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চরমোনাই পীর রহ. এর খলীফা  মাওলানা আব্দুল আউয়াল, মাওলানা আসাদুল্লাহ, ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদের খুলনা মহানগর সভাপতি মুফতী গোলামুর রহমান, নগর সাধারণ সম্পাদক মুফতী আব্দুল্লাহ ইয়াহইয়া, মুফতী আব্দুর রশীদ, মাওলানা আরিফ বিল্লাহ, মাওলানা আব্দুস সামাদ, মুফতী আল আমীন, মুফতী আসাদুল্লাহ, মুফতী আব্দুল মান্নান, মাওলানা হুসাইন মোহাম্মাদ জুম্মান, মুফতী আব্দুল্লাহ, মাওলানা আসাদুজ্জামান সহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চট্টগ্রামের ‘ফ্লু কর্ণার ও ইনভেস্টিগেশন সেল’ চলমান থাকবে মাসব্যাপী

চট্টগ্রামের ‘ফ্লু কর্ণার ও ইনভেস্টিগেশন সেল’ চলমান থাকবে মাসব্যাপী

রিয়াজুল করিম রিজভী,চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধানঃ

রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম ও সিটি ইউনিটের উদ্যোগে নন কোভিড রোগীদের সেবা প্রদানের লক্ষ্য নিয়ে চলমান মাসব্যাপী ‘ফ্লু কর্ণার ও ইনভেস্টিগেশন সেল’ কার্যক্রমে চিকিৎসা সেবা ও বিনামূল্যে ঔষধ পৌঁছে দিয়ে জনসাধারণের কল্যাণে এই কার্যক্রম চলমান। সেপ্টেম্বর এর ১ তারিখ থেকে চলমান এই কার্যক্রম, আজ অক্টোবর এর ১৫ তারিখ পর্যন্ত সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে।এই কার্যক্রম চলমান থাকবে এই মাসব্যাপী।বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রাম জেলা ও সিটি ইউনিটের উদ্যোগে যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের বাস্তবায়নে মির্জাপুলস্থ ডাঃ শেখ শফিউল আজম এর বাসভবনে নিয়মিত রোগীকে মেডিসিন, গাইনী, বাতব্যাথা, শিশুসহ বিভিন্ন বিষয়ে অভিজ্ঞ চিকিৎসকদের মাধ্যমে ক্যাম্পে সেবা অব্যাহত রয়েছে। মাসব্যাপী ‘ফ্লু কর্ণার ও ইনভেস্টিগেশন সেল’ -এ সেবা প্রদান করছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য ও চট্টগ্রাম জেলা রেড ক্রিসেন্টের ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ শেখ শফিউল আজম, ডাঃ শেখ সানজানা শারমিন।যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রামের যুব প্রধান মোঃ ইসমাইল হক চৌধুরী ফয়সাল এর নেতৃত্বে নিয়মিত দক্ষ স্বেচ্ছাসেবক টিম এর মাধ্যমে সেবাপ্রাপ্তিদের বিনামূল্যে ব্লাড পেশার পরিমাপ, ইনফ্রারেড থার্মোমিটারের মাধ্যমে তাপমাত্রা পরিমাপ, পালস্ অক্সিমিটারের মাধ্যমের দেহের অক্সিজেন পরিমাপ করা হচ্ছে। উল্লেখ্য যে, মাসব্যাপী প্রতিদিন সকাল ১০ ঘটিকা হতে দুপুর ১ ঘটিকা পর্যন্ত চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে।এই চিকিৎসা সেবা চলমান থাকবে পুরো সেপ্টেম্বর মাসব্যাপী।



মোহনগঞ্জে নববধূ সুলেমা হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

 মোহনগঞ্জে নববধূ সুলেমা হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন


আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি  (নেত্রকোনা)নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলায় যৌতুকের বলি তিন মাসে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর সুলেমা হত্যার সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে মানববন্ধন পালিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে  উপজেলার শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে শিক্ষার্থী, নারীসহ সর্বস্তরের জনগণ অংশগ্রহণ করেনএ মানববন্ধনে কবি, লেখক ও শিক্ষক রইস মনরম, নারী নেত্রী লাইলী আরজুমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সদস্য সচিব ইয়াসির আরাফাত রনিসহ আরো অনেকে বক্তব্য রাখেন।বক্তরা বলেন, সুলেমা হত্যাকে পরিকল্পিতভাবে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে নিহতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন। নিহত গৃহবধূ হত্যাকন্ডের সাথে জড়িত ও পলাতক দেবরসহ অন্যান্য আসামিদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তারা।উল্লেখ্য, পারিবারিকভাবে দুই বছর আগে সুলেমা আক্তারের বিয়ে হলেও গত ১১ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে স্ত্রীকে ঘরে তুলে নেয় শ্বশুরবাড়ির লোকজন। গত ১২ অক্টোবর সন্ধ্যা ৬টার দিকে 

 সুলেমাকে ফাঁস লাগানো অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বামী হৃদয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক গৃবধূকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই রাতেই নিহতে বাবা আবদুস ছাত্তার বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ নিহতের স্বামী ও শ্বাশুড়িকে গ্রেপ্তার করে।  নিহতের দেবর সহ অন্যান্য আসামিরা পলাতক রয়েছে।

শেখ রাসেল জাতীয় শিশু- কিশোর পরিষদ নাগরপুর এর সেক্রেটারি হলেন রিপন

 শেখ রাসেল জাতীয় শিশু- কিশোর পরিষদ নাগরপুর  এর সেক্রেটারি হলেন রিপন

ডা.এম.এ.মান্নান,টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধিঃ শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ নাগরপুর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন করা হয়েছে আর সেই কমিটির সাধারন সম্পাদক পদে মনোনিত হলেন ঐতিহ্যবাহী দুয়াজানী কলেজ পাড়ার সন্তান,সাবেক মেধাবী ছাত্রনেতা,বিশিষ্ট ফুটবলার মো.রিপন হোসেন।

আজ বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর ২০২০ খ্রি.টাঙ্গাইল জেলা শাখা সভাপতি মো.জাফর আলী খান ও সাধারন সম্পাদক মো.সাজিদ খান স্বাক্ষরিত ৬ মাসের জন্য মোহাম্মদ জাকির সজীব কে সভাপতি ও মো.রিপন হোসেন কে সাধারন সম্পাদক করে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।দুয়াজানী কলেজ পাড়ার সর্বস্বরের জন সাধারনের পক্ষ থেকে মো.রিপন হোসেন কে অভিনন্দন ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম বেগবান করার আহ্বান ইউজিসি’র

 পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম বেগবান করার আহ্বান ইউজিসি’র


নিউজ ডেস্কঃ দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম বেগবান করা এবং শিক্ষার্থীদের পাঠক্রমে বেশি মাত্রায় সম্পৃক্ত করার জন্য উপাচার্যদেরকে আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন।এছাড়া, শিক্ষার্থীদের বিনাসুদে স্মার্টফোন ও বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ প্রদানে ইউজিসি’র উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস পরিচালনা নিয়ে উপাচার্যদের সঙ্গে আজ (১৫ আক্টোবর) এক মতবিনিময় সভায় এ কথা জানানো হয়। দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ে আগামী ১৭ অক্টোবর (শনিবার) বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভায় নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। তবে, ইউজিসি’র চাওয়া ভর্তি পরীক্ষা যেন কোনক্রমেই প্রশ্নবিদ্ধ না হয়।এছাড়া, করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনা করে এখনই বিশ্ববিদ্যালয় খোলা মোটেও সমীচিন হবে না। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের মতে, হল খোলা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত হবে। বিশ্বের অনেক বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার উদাহরণ তারা সভায় তুলে ধরেন। 

অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রমের বর্তমান অবস্থা এবং এ ব্যবস্থাকে কিভাবে আরো কার্যকর করা যায় সে লক্ষ্যে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. শহীদুল্লাহ। সভায় ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, সমগ্র জাতি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে একটি সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা চাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ বিষয়ে চূড়ান্ত  সিদ্ধান্ত দরকার। ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. দিল আফরোজা বেগম- এর সঞ্চালনায় সভায় কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর, অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, রাজশাহী বিশ্বদ্যিালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সত্য প্রসাদ মজুমদার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আক্তার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদসহ ৪৬ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যগণ, কমিশনের সচিব (অ.দ.) ড. ফেরদৌস জামান, জনসংযোগ ও তথ্য অধিকার বিভাগের পরিচালক ড. শামসুল আরেফিন ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের পরিচালক মো. কামাল হোসেন, সভায় উপস্থিত ছিলেন।

নবীনগরে মিথ্যা মামলায় হয়রানির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

 নবীনগরে মিথ্যা মামলায় হয়রানির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন


এস.এম অলিউল্লাহ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধিঃব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের মিরপুর গ্রামে অসুস্থ বয়োবৃদ্ধ বাবাকে বলী করে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মিথ্যা মামলা দায়ের করার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেন বিশ্ব বিদ্যালয়ে পড়ুয়া মেধাবী ছাত্র রায়হান।বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার নূরনগর সাংবাদিক ফোরামে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ তোলেন রায়হান।লিখিত বক্তব্যে রায়হান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তার প্রতিবেশী গণি মিয়া ও তার ছেলেদের সাথে জায়গা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল তার পরিবারের।এর জের ধরে তারা পরপর আমার বাড়িতে হামলা চালায়,অামাকে অামার বাবা মাকে গুরতর অাহত করেছে।অামি অাইনের অাশ্রয় নিয়েছি তাই তারা তা থেকে বাঁচতে এই নাটক সাজিয়ে আমাদের ঘায়েল করতে চায়।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক ভাবে,স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সহ থানায় বেশ কয়েকবার দেন দরবার হয়।গণি মিয়া গংরা বার বারই আপোষ মিমাংসার রায় মেনে পূনরায় আবার তা ভরখেলাপ করে চলেছেন।এক প্রশ্নের জবাবে রায়হান আরো জানান,স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের ইন্ধনে গনি মিয়ার বয়সকে পুঁজি করে ভিন্ন খেলায় মেতে উঠেছে গণি মিয়ার ছেলেরা।তার ছেলেরা গণি মিয়ার বয়সের ভারে দুর্বল হয়ে বাথরুমে যাবার সময় রাস্তায় পড়ে হাড় ভেঙে যায়।চিকিৎসার চলতি অবস্থায় সুস্থ্যতার জন্য শুয়ে থাকতে থাকতে পিঠে ঘা হয়ে গেলে তার সন্তানেরা এটি নিয়েও নোংরা রাজনীতি শুরু করেছেন।চিকিৎসার ব্যবস্থাপত্র দেখিয়ে এসব জখমকে আমাদের দ্বারা আঘাত বলে অপপ্রচার চালানো সহ আদালতে মিথ্যা মামলা দায়ের করে আমার পরিবার কে হয়রানি করছে।অথচ এই বিষয়টি অন্যান্য প্রতিবেশী গ্রামবাসী সহ এলাকাবাসী জানেন।ওরা এতোই হিংস্র যে এমন কোন কাজ নেই যা তাদের ধারা অসম্ভব।আশাকরি আদালত বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করবেন।বিষয়টি নিয়ে শান্তির লক্ষ্যে নবীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের সহায়তা কামনা করছি।পরে রায়হান তার মোবাইলে একটি অডিও রেকর্ড শোনান যেখানে গনি মিয়ার ছেলেরা রায়হান ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দিতে দেখা গেছে।সংবাদ সম্মেলনে রায়হান সহ তার বাবা ও চাচা উপস্থিত ছিলেন।

এ্যাড.পলাশকে নেতৃবৃন্দের ফুলের শুভেচ্ছা ও সংবর্ধনা প্রদান

 এ্যাড.পলাশকে নেতৃবৃন্দের ফুলের শুভেচ্ছা ও সংবর্ধনা প্রদান

আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃ অনাবাদি জমিতে বিষমুক্ত সবজি চাষে বিশেষ অবদান রাখার জন্য, বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদ এর কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আল মাহমুদ পলাশকে, জননেত্রী শেখ হাসিনা সন্মাননা-২০২০পদক প্রদান করায়, বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদ আইনজীবী সহকারী প্রাতিষ্ঠানিক শাখা সাতক্ষীরা জেলার উদ্যোগে  সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে।সংগঠনের সাতক্ষীরা জেলা শাখার আয়োজনে বৃহস্পতিবার ( ১৫ অক্টোবর-২০২০) বিকাল ৫টায় দলের অস্থায়ী কার্যালয়ে,মনোরঞ্জন বন্ধ্যপধ্যায়ের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদ এর কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আল মাহমুদ পলাশ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের সাতক্ষীরা জেলা যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আমিনুর রহমান ও আসাদুজ্জামান লাবলু,  আইনজীবী প্রতিষ্ঠানিক শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক এড. সুনীল ঘোষ,

বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মোছাক সরদার, আইনজীবী সহকারী প্রাতিষ্ঠানিক শাখার উপদেষ্টা আওয়ামীলীগ নেতা কাজি শাহাদাৎ হোসেন মাসুম, শিল্পী প্রাতিষ্ঠানিক শাখা সভাপতি বেলাল হোসেন, আইনজীবী সহকারী সহ-সভাপতি শাহাদাত হোসেন, ধর্ম সম্পাদক রহমত আলী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাজান কবির ও রবিউল ইসলাম, পৌর সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, পৌর দপ্তর সম্পাদক আবু রায়হান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক খুকু মনি, মনিরা সুলতানা, রুহুল আমিন, আলমগীর হোসেন প্রমুখ।

এসময় করোনা মহামারী মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত কর্মসূচিসূমহ পালন করবার জন্য সংগঠনের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানিয়ে এডভোকেট আল মাহমুদ পলাশ বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ক্ষুদা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। তাই বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের প্রত্যেক নেতাকর্মিরা সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নে তৃণমুল পর্যায়ে স্বউদ্যোগে কার্যক্রম করে যেতে হবে। তাহলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে উঠবে।

শ্বাশুড়ির নির্যাতনে পুত্র বধুর গলায় দঁড়ি

শ্বাশুড়ির নির্যাতনে পুত্র বধুর গলায় দঁড়ি


সম্রাট হোসেন, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধিঃঘটনা টি গটেছে ঝিনাইদহ জেলার।কালীগঞ্জ থানা। ছোটভাট পাড়া পুর্বপাড়ার ফজলুর  রহমানের  স্ত্রী নাসিমা বেগম ৩৫ শাশুড়ির নির্যাতনে গলায় দরি দিয়ে আত্যহত্যার চেষ্টা।ফজলুর রহমান মোঃ মিজানুর রহমানের প্রথম পক্ষের বড় ছেলে। ফজলুর রহমান  পেশায় দিনমজুর কাজের তাগিদে বাড়ির বাহিরে থাকেন। ওই সুজুকে তার সৎ মা আরজিনা বেগম। ফজলুর রহমানের স্ত্রীকে বিভিন্ন ওজুহাতে নির্যাতন করে।ঘটনার দিন ফজলুর রহমান প্রতিদিনের মতো কাজের জন্য বাড়ীর বাহিরে চলে যান।বিকাল বেলা আনুমানিক সময় (০,৫) দিকে সে শুনতে পায় তার স্ত্রী  গলায় দড়ি দিয়েছে। ফজলুর রহমান  বাড়ীতে গিয়ে শুনতে পায়।তার সৎ মায়ের সাথে রাগারাগি হয়েছে।ফজলুর রহমানের পিতার প্রথম পক্ষের স্ত্রীকে, তালাক দিয়ে দ্বিতীয়  বিবাহ করেন।সেই ঘড়ে তার ( দুই ছেলে    এক মেয়ে)  প্রথম পক্ষের দুই ছেলে। বড় ছেলে ফজলুর রহমান। ছোট ছেলে বজলুর রহমান সৎ মায়ের নির্যাতন সহ্য  করতে না পেরে অন্যত্র জমি বাড়িকরে থাকেন ফজলুর রহমান দিনমজুর বিদায় জমি কিনতে পারেনা তাই তার বাপের বাড়িতে বসবাস করে, সেই কারনে নানা অজুহাতে তার সৎ মা তার স্ত্রীকে নির্যাতন চালিয়ে  যেত।এক পর্যায়ে সে নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বধূ নাছিমা বেগম গলায় দড়ি দিয়ে আত্যহত্যা করার চেষ্টা চলায়।পরে এলকা বাসির সহযোগিতায় সে প্রানে বেঁচে যায়। এ বিষয়ে  থানায় কোনো অভিযোগ করা হয়নি।

অবৈধ দখলদারদের দৌরাত্বে অতিষ্ট নগরবাসী: প্রশাসনের দৃষ্টি কোথায়!

অবৈধ দখলদারদের দৌরাত্বে অতিষ্ট নগরবাসী: প্রশাসনের দৃষ্টি কোথায়!


 


স্টাফ রিপোর্টারঃ   আজকাল দখলবাণিজ্য আর এ নৈরাজ্য ব্যাপকহাড়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রায়শই শোনা যায় দেশের বিভিন্ন জায়গায় এক দল অসাধু লোক ক্ষমতার দাপটে অবৈধভাবে জায়গা দখল বাণিজ্য করে আসছেেএত করে যেমন জমি মালিকের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তেমনি অবৈধ দোকান বা বাণিজ্যের কারণে এলাকার সাধারণ জনতা থেকে শুরু করে পথচারিরা ব্যাপক কষ্ট পোহাচ্ছেন। তেমনি এক খবর উঠে এসছে দেশের জাতীয় কিছু দৈনিকে।


রাজধানীর আনারকলি সুপার মার্কেটের গাড়ি রাখার জায়গা দখল করে তৈরি করা হয়েছে অবৈধ দোকানপাট। জায়গার মালিক সিদ্ধেশ্বরী বালক উচ্চবিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, কারা দোকান বসিয়েছে তারা জানে না। দোকানিদের দাবি, স্থানীয় যুবলীগের নেতাদের নিয়মিত ভাড়া দেন তাঁরা। এসব অবৈধ দোকানের কারণে মার্কেটের সামনে এবং পাশে সিদ্ধেশ্বরী রোডটিতে সব সময় প্রচণ্ড যানজট লেগেই থাকে।


দেখা যায়, আনারকলি সুপার মার্কেটের পেছন দিকে গাড়ি রাখার জায়গায় স্থায়ী ও অস্থায়ী দোকান গড়ে উঠেছে। স্থায়ী দোকানগুলোর নাম দেওয়া হয়েছে ‘আনারকলি প্লাস সুপার মার্কেট’। টিনের ছাউনির স্থায়ী দোকানগুলো সিদ্ধেশ্বরী বালক উচ্চবিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে বসানো হয়েছে। ২০০৯ সালে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পরে তখনকার পরিচালনা পর্ষদ এসব স্থায়ী দোকানের অনুমতি দিয়েছে বলে স্কুল সূত্রে জানা যায়।

গাড়ি রাখার জায়গায় দোকান দেওয়ায় মার্কেটে গাড়ি রাখার স্থান কমে গেছে। চলাচলের পথও সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। ফলে এখানে সারাক্ষণ তীব্র যানজট হচ্ছে। সিদ্ধেশ্বরী রোডটি দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকেরা ভিকারুননিসা নূন স্কুলে যাতায়াত করেন। আনারকলি মার্কেটের সামনের যানজটের কারণে পুরো সড়কটি স্থবির হয়ে থাকে। প্রতিদিন স্কুলে যাতায়াত করতে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের প্রচণ্ড দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আনারকলি প্লাস সুপার মার্কেটের সামনে বাঁশের গাঁথুনির ওপর পলিথিনের ত্রিপল টানিয়ে, বাঁশের মাচা দিয়ে গড়ে উঠেছে আরও ২০-২৫টি অস্থায়ী দোকান। এমনভাবে দোকানগুলো বানানো হয়েছে যে বাইরে থেকে দেখলে মনে হয়, এগুলোও আনারকলি প্লাস সুপার মার্কেটের অংশ। এসব অস্থায়ী দোকান গড়ে উঠেছে স্কুল কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক অস্থায়ী দোকানি বলেন, তাঁদের কাছ থেকে মাসে ৬-১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া আদায় করা হয়। স্থানীয় ১৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের নেতা মাসুদ রানা এই ভাড়া নেন। মাসুদ রানা স্থানীয় যুবলীগ নেতা |

আনারকলি মার্কেটের পাশের একটি নির্মাণাধীন ভবনের পাশে মাসুদ রানার কার্যালয় বলে ব্যবসায়ীরা জানান। সেখানে গেলে উপস্থিত এক যুবক বলেন, ‘মাসুদ ভাই কখন আসবে ঠিক নাই।’ মাসুদ রানার মুঠোফোন নম্বর চাইলে তা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন ওই যুবক।

১৯ নম্বর ওয়ার্ডের  যুবলীগ নেতা  নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বলেন ,মাসুদ রানা দুই বছর  আগেও সালে নানান  অভিযগে বহিস্কার করা হয় কিন্তু সে বহিস্কৃত হয়েও মার্কেট ফুটপাত থেকে ১৫ লক্ষ  টাকার মতন চাঁদা তুলে .আর  কেউ তার বাহিরে অভিযোগ করলে গুলবাগ এ তার নিজস্ব টর্চার সেলে অত্যাচার করে .আর বর্তমানে আধিপত্য ধরে রাখার জন্যে শীর্ষ সন্ত্রাসী মানিক কে  ফোনে  ধরিয়ে দেয় .শুদ্ধি অভিযানের আগে তার সিদেস্বরী মাঠের কোনায় প্রতি রাতে জুয়ার আসর  বসত .

আনারকলি সুপার মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বিভোর চন্দ্র দে বলেন, ‘বাইরে পার্কিংয়ের জায়গায় গড়ে ওঠা দোকানগুলোর সঙ্গে দোকান মালিক সমিতির কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। এ বিষয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ বলতে পারবে। মার্কেটের দোকানগুলো যাতে বাইরে মালামাল না রাখে, সে জন্য মালিক সমিতির পক্ষ থেকে লাল দাগ দিয়ে সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।এ বিষয়ে কথা বলতে স্কুল পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মুন্সী কামরুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সিদ্ধেশ্বরী বালক উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শেখ ফরিদুজ্জামান পার্কিংয়ের দোকানগুলোর বিষয়ে নিজেদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন।তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আগের পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা দোকানগুলো বরাদ্দ দিয়ে যান। কিছু দোকান থেকে এক বছর ধরে স্কুল কর্তৃপক্ষ কোনো ভাড়া পাচ্ছে না।’


পলিথিনের ত্রিপল দিয়ে গড়ে ওঠা অস্থায়ী দোকানগুলোর বিষয়ে শেখ ফরিদুজ্জামান বলেন, ‘এগুলো কারা করছে আমরা জানি না। আমরা শিক্ষক। চুপচাপ থাকি। বাইরের বিষয়ে নাক গলাতে যাই না।স্কুলের মাঠ দখল করে বসানো হয়েছে জেনারেটর। অভিযোগ আছে এই জেনারেটর দিয়ে বাণিজ্যিক লাইন দিয়েছেন স্থানীয় ১৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা। কিন্তু ব্যবস্থা নিতে পারেননি সাবেক  কাউন্সিলর।  তিনি অবৈধ  টাকায় অনেক  ফ্লাট কিনেছেন বলে জানা যায়। সিদ্ধেশ্বরী বালক উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের আখড়ায় পরিণত করেছে স্থানীয় যুবলীগ নেতা মাসুদ রানা ও তার সহযোগীরা। তাদের অবৈধ কাজে বাধা দেয়ায় একের পর এক হামলা, মারধর ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক- শিক্ষিকারা। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির চেয়ারম্যান ও স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে দেওয়া হয়েছে হত্যার হুমকি। এ ঘটনায় রমনা থানায় মামলা হয়েছে বলেও জানা যায়। 

তবে কেন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী নিরব ভুমিকায় আছে এটা নিয়ে জনসাধারণের মনে অনেক প্রশ্ন। আশা করা হচ্ছে এমন সব অবৈধ কাজে প্রশাসন দৃষ্টিপাত করবে এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এটাই প্রশাসনের কাছে চাওয়া।

চট্টগ্রামে নারী নির্যাতন মামলায় জামিনে এসে বাদীনিকে হত্যার হুমকি যুবলীগ নেতার

 চট্টগ্রামে  নারী নির্যাতন মামলায় জামিনে এসে বাদীনিকে হত্যার হুমকি যুবলীগ নেতার

দক্ষিণ  চট্টগ্রাম  প্রতিনিধি,সেলিম চৌধুরীঃ- চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার এরাকায় সন্ত্রাসী যুবলীগ নেতা নুর মোস্তাফা টিনুর গডফাদার যুবলীগ নেতা সন্ত্রাসী একরাম হোসেন বিরুদ্ধে সম্প্রতি নারী নির্যাতন মামলা জামিনে এসে বাদীনিকে হত্যার হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যুবলীগ ক্যাডার নুর মোস্তাফা টিনু গ্রেফতার হওয়ার পর চকবাজার ও পাঁচলাইশ এলাকায় সন্ত্রাসী দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ ও একরাম হোসেন  নিয়ন্ত্রনে নেয় এলাকায় চাঁদাবাজি, মদ,জুয়া, জবর দখল, পতিতার ব্যবসা, আবাসিক হোটেল, কোসিং সেন্টার, অনলাইনে জুয়া, চকবাজার এরিয়ায় জুয়ার ক্লাব পরিচানা, অবৈধ টমটমে চাঁদা আদায়, ফুটপাতে হকার বসিয়ে চাঁদা আদায়সহ বিভিন্ন অপরাধের নিয়ন্ত্রক তারা। সর্ম্পকের তারা আপন ভাই হলেও অপরাধ জগতেও তারা একে অপরের সহযোগি। রয়েছে তারা দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন, ধর্ষন, চাঁদাবাজিসহ ডজনের অধিক মামলা। চকবাজার থানা পুলিশ ও পাঁচলাইশ থানা পুলিশের সাথে তাদের সখ্যতা থাকায় একাধিক মামলায় গ্রেফাতারী পরোয়ানা জারি থাকলেও রহস্যজনক কারণে পুলিশ গ্রেফতার করছে না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। সারা দেশে সন্ত্রাসী বিরোধী ও মাদক, জুয়া বিরোধী অভিযান শুরু হলে দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ গ্রেফতার এড়াতে কিছুদিন বিদেশে পালিয়ে যান।এলাকায় চাঁদাবাজি, মাদক, ইয়াবা ব্যবসায়ীদের প্রশাসনিক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন তারা। অপরাধ জগত নিয়ন্ত্রন পুলিশ ও র‌্যাবসহ প্রশাসনের লোকজনকে উপরের দিক দেখা শোনা করেন দেলোয়ার।


 পরিস্থিতি কিছুটা স্বভাবিক হলে এলাকায় ফিরে আবার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। গত ২৯ সেপ্টেম্বর নগরীর বায়েজিদ এলাকার জাকির হোসেন স্ত্রী মিনু আকতারের বাসায় ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার দায়েরকৃত পাঁচলাইশ থানা পুলিশ যুবলীগের কথিত নেতা আকতার হোসেনকে মামলায় গ্রেফতার করেন। গত ৫ অক্টোবর জামিনে আসার পর যুবলীগ নেতা একরাম হোসেন ও তার ভাই দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ মামলার বাদীনিকে মোবাইলে হত্যার হুমকি দেন। নির্যাতনের শিকার মিনু আকতার ও তার পরিবার জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আদালতে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করেছেন বলে জানান। এছাড়া গাটমেন্টস ব্যবসায় নুরুন নবীকে কাছ থেকে অস্ত্র ধরে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজির মমলা রয়েছে দেলোয়ার হোসেন ফরহাদের বিরুদ্ধে। নুরুন নবীকেও দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ একই কায়দায় হত্যার হুমকি দিয়ে মামলা তুলে নিতে চাপ সৃষ্টি করছেন বলে জানান। সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, সন্ত্রাসী যে হউক যে দলের হউক, যত বড় ক্ষমতাধর ব্যক্তি হউক পুলিশ তার বিরুদ্ধে ব্যস্থা নিবেন বলে তিনি জানান।

আশাশুনির দাদপুর জামিআ দারুসসুন্নাহ মাদরাসায় বৃক্ষরোপন উদ্বোধন

 আশাশুনির দাদপুর জামিআ দারুসসুন্নাহ মাদরাসায় বৃক্ষরোপন উদ্বোধন

আহসান উল্লাহ বাবলু আশা শুনি  সাতক্ষীরা  প্রতিনিধিঃ আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের দাদপুর জামিআ দারুসসুন্নাহ মাদরাসায় বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে কচুয়া গ্রামের আলোচিত বৃক্ষপ্রেমী গ্রাম্য ডাক্তার আনিছুর রহমান মাদ্রাসা চত্বরে এ বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন। বৃক্ষপ্রেমী আনিছুর রহমানের নিজস্ব অর্থায়নে ও আশাশুনি প্রেসক্লাবের সদস্য এম এম নুর আলম এর সার্বিক সহযোগিতায় বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধনকালে দাদপুর জামিআ দারুসসুন্নাহ মসজিদ ও মাদ্রাসা কমিটির সহ-সভাপতি খোদাবক্স বিশ্বাস, মসজিদের ইমাম ও মাদ্রাসার মুহতামিম হাফেজ আঃ হান্নানসহ মসজিদ ও মাদ্রাসা কমিটির সদস্যবৃন্দ এবং মাদ্রাসার ছাত্রবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, কচুয়া গ্রামের মৃত আবু জাফরের ছেলে বৃক্ষপ্রেমী গ্রাম্য ডাক্তার আনিছুর রহমান বিভিন্নস্থানে নিজস্ব অর্থায়নে গাছ ক্রয় করে বিগত ৪৫ বছর ধওে রোপন করে আসছেন।

আশাশুনিতে পুলিশী অভিযানে ১০ আসামী আটক

 আশাশুনিতে পুলিশী অভিযানে ১০ আসামী আটক




আহসান উল্লাহ বাবলু আশাশুনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ   আশাশুনি থানা পুলিশের পৃথক পৃথক অভিযানে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও নিয়মিত মামলার ১০ আসামীকে আটক করা হয়েছে। আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ গোলাম কবির এর নেতৃত্বে বুধবার এসআই গাজী নূর নবী, এএসআই কবির হোসেন, এএসআই দেবাশিষ মন্ডল, এএসআই সাইফুল ইসলাম, এএসআই নাজিম উদ্দীন, এএসাই মোকাদ্দেস হোসেন ও এসআই কায়ছারুল ইসলাম অভিযান পরিচালনাকালে উপজেলার খাজরা ইউনিয়নের মনিপুর গ্রামের রজব আলী ঢালী ছেলে রেজাউল করিম, মিজান ঢালী, ইকরামুল, বড়দল ইউনিয়নের ফকরাবাদ গ্রামের সিরাজুল গাজী ছেলে মুন্না গাজী এবং মধ্যম বড়দল গ্রামের খানজু মোল্যার ছেলে বিল্লাল মোল্যা, কাদাকটি ইউনিয়নের শাহানগর গ্রামের মৃত শাহ গোলাম ইদ্রিস এর ছেলে নান্টু ও মিত্র তেঁতুলিয়া গ্রামের মৃত আলাউদ্দীন ফকির এর ছেলে মন্টু ফকির, শোভনালী ইউনিয়নের বসুখালী গ্রামের মৃত ইয়াকুব্বার গাজীর ছেলে সালাম গাজী, শ্রীউলা ইউনিয়নের আলেক সরদারের ছেলে গফ্ফার সরদার, প্রতাপনগর গ্রামের আব্দুস সালাম এর ছেলে মনিরুজ্জামানকে আটক করেন। আটককৃত সকল আসামীদেরকে বৃহস্পতিবার দুপুরে বিচারার্থে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আশাশুনির কচুয়া কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা

 আশাশুনির কচুয়া কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা

আহসান উল্লাহ বাবলু আশাশুনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃআশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের কচুয়া কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার। বৃহস্পতিবার দুপুরে  পরিদর্শনকালে তিনি স্বাস্থ্য বিধি মেনে সেবা প্রদান, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা, জনগণের সাথে ভালো ব্যবহার, আগত রোগীদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে স্বাস্থ্য বার্তা প্রচার, স্বাস্থ্য শিক্ষা সভা, লিফলেট বিতরণসহ বিভিন্ন বিষয়ে সিএইচসিপিকে নির্দেশনা প্রদান করেন। এসময় স্বাস্থ্য পরিদর্শক ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক (ভারপ্রাপ্ত) মোক্তারুজ্জামান স্বপন, সিএইচসিপি মোজাম্মেল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ঝিনাইদহে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক

 ঝিনাইদহে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক




ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃঝিনাইদহে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ইয়াবাসহ আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে ৩ শত পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। সে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ভেড়ামারা গ্রামের ইলঅহি বিশ্বাসের ছেলে।

ঝিনাইদহ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি শহরের ভুটয়ারগাতী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় মাদক কেনাবেচা চলছে। এমন খবরের ভিত্তিতে এস আই রফিকুল ইসলামসহ সঙ্গিয় ফোর্স নিয়ে সেখানে অভিযান চালায়। সেসময় রবেদুল নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। পরে তার দেহ তল্লাশি করে ৩শত পিচ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি মাদক মামলা হয়েছে।

মানুষের জানমাল ও নিরাপত্তার দায়িত্ব পুলিশের-শেখ ইয়াছিন আলী

মানুষের জানমাল ও নিরাপত্তার দায়িত্ব পুলিশের-শেখ ইয়াছিন আলী


আহসান উল্লাহ বাবলু আশাশুনি সাতক্ষীরা  প্রতিনিধিঃ আশাশুনি   আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা বাজারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন ও দৈনিক আজকের সারাদেশ প্রত্রিকার আশাশুনি ব্যুরো অফিস এবং সহ-সম্পাদকের কার্যালয় উদ্বোধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১.৩০ টায় বাজারের সাহিন টাউয়ার এর চতুর্থ তলায় কার্যালয় উদ্বোধন উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার  (দেবহাটা সার্কেল) আলহাজ্ব শেখ ইয়াছিন আলী। এসময় তিনি বলেন, মানুষের জানমাল ও নিরাপত্তার দায়িত্ব পুলিশের। পুলিশ মানুষের সার্বিক নিরাপত্তা দিতে সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে। এলাকা থেকে সকল প্রকারের মাদক, জঙ্গি, সন্ত্রাসসহ সকল প্রকারের অন্যায় দুর্নীতি নির্মূলে পুলিশের পাশাপাশি জনগণকেও এগিয়ে আসতে হবে। সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার শেখ ইয়াছিন আলী এসময় সকল অপরাধীকে সতর্ক করে দিয়ে সমাজ বিরোধী কাজ থেকে বিরত থাকার আহবান জানান। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ গোলাম কবির, কুল্যা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছেত আল হারুন চৌধুরী ও বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যান আ ব ম মোছাদ্দেক। বিডিএমএ এর সভাপতি ও জনসেবা ক্লিনিকের স্বত্বাধিকারী ডাঃ সাহিনুর রহমানের পরিচালনায় প্রধান আলোচক ছিলেন, প্রত্রিকাটির প্রধান সম্পাদক গাজী সাজাহান। প্রত্রিকার সহ-সম্পাদক এবং জনসেবা ফার্মেসীর স্বত্বাধিকারী রবিউল আলমের সভাপতিত্বে এসময় সাংবাদিকবৃন্দ ও চিকিৎসকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের অনুষ্ঠান সূচির সময় পরিবর্তন

 জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের অনুষ্ঠান সূচির সময় পরিবর্তন

জবি প্রতিনিধিঃপুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ১৫ তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস এবং ১৬২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আগামী ২০ অক্টোবর (মঙ্গলবার)। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ২০ অক্টোবরকে ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। করোনা মহামারীতে ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত পরিসরে আয়োজনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর মধ্যে রয়েছে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সংগীত পরিবেশনা, বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শুভ উদ্বোধন, ভার্চ্যুয়াল আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি একমাত্র ছাত্রী হলের উদ্বোধন।বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) উপাচার্যের মহোদয়ের আদেশক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো: ওহিদুজ্জামানের স্বাক্ষরিত ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে পরিবর্তিত সময়সূচি প্রকাশিত হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২০ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। ২০ অক্টোবর, ২০২০ (৪ কার্তিক) মঙ্গলবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়-২০২০ তথা ১৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে মহামারী করোনা কারণে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বল্প পরিসরে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। অনিবার্য কারণবশত: অনুষ্ঠান সূচির সময় পরিবর্তন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানসূচির মধ্যে রয়েছে সকালে শহীদ মিনার চত্বরে জাতীয় পতাকা, বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনা (৯ টা ১০), বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শুভ উদ্বোধন (৯ টা ১৫), জবির একমাত্র হল প্রাঙ্গণে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের শুভ উদ্বোধন (৯ টা ৩০) করবেন অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান (মাননীয় উপাচার্য)। সকাল ১০ টা ৩০ থেকে বেলা ১২ টা পর্যন্ত ভার্চ্যুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান ও সভাপতিত্ব করবেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ। এরপর বেলা ১২ টা ৩০ থেকে বেলা ২ টা ৩০ পর্যন্ত সঙ্গীত বিভাগের আয়োজনে রয়েছে ভার্চুয়াল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।করোনাকালীন সময়ে জাঁকজমকপূর্ণভাবে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন করা না গেলেও এবারের প্রধান আকর্ষন থাকছে জবি একমাত্র হল উদ্বোধন। দীর্ঘ ১০ বছর পর জবির একমাত্র ছাত্রী হলটি উদ্বোধনের পথে। এ প্রকল্পের প্রথম দফায় মেয়াদ ছিল ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত। দ্বিতীয় দফায় মেয়াদ ছিলো ২০১৩ সালের জুন থেকে ২০১৬ সালের জুন। তৃতীয় দফায় ২০১৬ সালের জুন থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয় মেয়াদ। সর্বশেষ ২০১৮ সালের জুন থেকে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল। এরপর অতিরিক্ত সময়ে শেষ হয় নির্মান কাজ। ২০ তলা ভিত্তির ওপর ১৬ তলা ভবনের হলটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ ছিল ৩৬ মাস। প্রকল্প বাস্তবায়নের ভার দেয়া হয়েছিল শিক্ষা প্রকৌশল দফতরের ওপর। ১১১টি কক্ষবিশিষ্ট হলটিতে একটি লাইব্রেরি, একটি ক্যান্টিন, একটি ডাইনিং, প্রতি তলায় সাতটি করে টয়লেট, আটটি গোসলখানা, ছাত্রীদের ওঠা নামার জন্য চারটি লিফট স্থাপন করা হয়েছে। হলটিতে এক হাজার ছাত্রীর থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। উল্লেখ্য যে, ২০১৩ সালের ২২ ডিসেম্বর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এম.পি. বাংলাবাজারে অবস্থিত ‘বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল’-এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১৪ সালের ২০ অক্টোবর ৯ম বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে নির্মাণ কাজের শুভ সূচনা করেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের তৎকালীন চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী) অধ্যাপক ড. এ. কে. আজাদ চৌধুরী।

২০০৯ ও ২০১১ সালের হল উদ্ধার ও নির্মাণের দাবিতে আন্দোলনে নামে জবি শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ছাত্রী হল নির্মাণের ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ। হলের দাবিতে প্রথম আন্দোলন হয় ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে। সে সময় ২৯ দিন বন্ধ ছিল জবি ক্যাম্পাস। পরবর্তীতে আবারো আন্দোলন হয় ২০১৪ সালে। এরপর আন্দোলন হয় ২০১৬ সালে।জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৮৫৮ সালে ঢাকা ব্রাহ্ম স্কুল নামে প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করে। এরপর ১৮৭২ সালে নাম বদলে বালিয়াটির জমিদার কিশোরীলাল রায় চৌধুরী তার বাবার নামে জগন্নাথ স্কুল নামকরণ করেন। ১৮৮৪ সালে এটি একটি দ্বিতীয় শ্রেণির কলেজে ও ১৯০৮ সালে প্রথম শ্রেণির কলেজের রূপ পায়।১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা শুরু হলে তৎকালিন জগন্নাথ কলেজের স্নাতক কার্যক্রম সাথে আই.এ, আই.এসসি, বি.এ (পাস) শ্রেণী ছাড়াও ইংরেজি, দর্শন ও সংস্কৃতি অনার্স এবং ইংরেজিতে মাস্টার্স চালু বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং ইন্টারমিডিয়েট কলেজে অবনমিত করা হয়।

পরবর্তীতে ১৯৪৯ সালে আবার কলেজেটিতে স্নাতক পাঠ্যক্রম শুরু হয়। ১৯৬৮ সালে এটিকে সরকারিকরণ করা হয়। কিন্তু পরের বছরেই আবার এটি বেসরকারি মর্যাদা লাভ করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও স্বাধীনতা পূর্ববর্তী-পরবর্তী সময়ে সকল আন্দোলন-সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা এ প্রতিষ্ঠানটি ২০০৫ সালে জাতীয় সংসদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৫ পাশের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেব রুপান্তরিত হয়। 

আশাশুনি উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা

আশাশুনি উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা


আহসান উল্লাহ বাবলু আশাশুনি সাতক্ষীরা  প্রতিনিধিঃআশাশুনি উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মোস্তাকিম এর সভাপতিত্বে ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজার  সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান অসীম বরণ চক্রবর্তী, মোসলেমা খাতুন মিলি, উপজেলা প্রকৌশলী আক্তার হোসেন, পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম নিপেন্দ্রনাথ, কৃষি কর্মকর্তা রাজিবুল হাসান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহাগ খান,পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ আ ব ম মোসাদ্দেক, আবু হেনা সাকিল, প্রভাষক মোনায়েম হোসেন, স ম সেলিম রেজা মিলন, শেখ জাকির হোসেন,দীপঙ্কর কুমার সরকার, আব্দুল আলিম মোল্লা, উপজেলা পরিষদের সিএ নাজমুল হুদা। সভায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা হয়। ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত নদী ভাঙ্গন কবলিত পানিবন্দি মানুষ ও এলাকার অর্থনৈতিক অবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় এবং বারবার প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে আশাশুনি উপজেলাকে দুর্যোগ প্রবণ উপজেলা হিসেবে চিহ্নিতকরণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

শৈলকুপায় পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

 শৈলকুপায় পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু


সম্রাট হোসেন ,ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃঝিনাইদহের শৈলকুপায় পুকুরের পানিতে ডুবে ১৮ মাস বয়সী ফাহিম হোসেন ও আদিব হাসান নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সকালে উপজেলার সারুটিয়া ইউনিয়নের ব্রহ্মপুর ও কৃষ্ণনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু ফাহিম ব্রহ্মপুর গ্রামের রাজীব হাসান ও আদিব কৃষ্ণনগর গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে। পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, সকালে শিশু ফাহিম পরিবারের লোকজনের অগোচরে খেলতে খেলতে বাড়ির পাশের পুকুরে পড়ে যায়। পরে খোঁজাখুঁজি করে তার লাশ পুকুরে ভেসে থাকা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। অপরদিকে আদিবও খেলতে খেলতে বাড়ির পাশে ডোবায় পড়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। এ ঘটনায় শিশু দুটির পরিবারে শোকের মাতম চলছে। শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পটিয়া পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী শফিকুল ইসলাম

পটিয়া পৌর নির্বাচনে  কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী শফিকুল ইসলাম

 

সেলিম চৌধুরী, পটিয়াঃ- পটিয়া পৌরসভার মধ্যে ২ নম্বর ওয়ার্ড সুচক্রদন্ডী ওয়ার্ড বিভিন্ন কারণে গুরুত্বপূর্ণ  এখানে প্রধান বিচারপতি আবদুল করিম, উপমহাদের খ্যাতনামা পুথি গবেষক আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদের জন্মভুমি একসময় রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করেন মরহুম জনাব আলী ফকির। বর্তমানে মাননীয়  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখ্য সচিচ আহমদ কায় কাউস এর জন্মভুমি সুচক্রদন্ডীতে। রয়েছে  অসংখ্য স্কুল, শিক্ষাবিদ, সরকারি- বেসরকারি কর্মকর্তার জন্মভুমি সুচক্রদন্ডীতে। ফলে এই ওয়ার্ড পটিয়া পৌরসভার মধ্যে অন্যতম  আসন্ন পটিয়া পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামীলীগ দলীয় সমর্থনে ২ নম্বর ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে মনোনয়ন প্রত্যাশী পটিয়া পৌরসভার আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফি। তিনি দীর্ঘদিন রাজনীতির পাশাপাশি সমাজ সেবায় নিয়োজিত ছিলেন। কৃষকের মাঝে সার বিতরণ, কৃষি উপকরণ বিতরণ, স্বেচ্ছাশ্রম করে রাস্তা নির্মাণ করা এবং করেনা মহামারীতে গরীব দুঃখী মেহনতী অসহায় মানুষের কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য বিতরণ করে আলোচনায় উঠে আসেন। তিনি এ প্রতিবেদকে আসন্ন পটিয়া পৌরসভার নির্বাচনে ২ নম্বর ওয়ার্ড সুচক্রদন্ডী থেকে নির্বাচন করার ঘোষণা দেন। সে এ ব্যাপারে মাননীয় হুইপ পটিয়ার এমপি আলহাজ্ব শামসুল হক চৌধুরীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।   তিনি  বলেন এশিয়ার সর্ব বৃহৎ ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মাধ্যমেই আমার রাজনীতির পথচলা শুরু হয়। ছাত্রলীগের সাবেক  পটিয়া পৌরসভার।দায়িত্ব পালন করতে ২০০১ সালে বিএনপি- জামাত জোট সরকার আমলে নানানভাবে হয়রানি হয়েছি। এমনকি মামলা হামলা নির্য়াতনের শিকার হতে হয়েছে। আমার শিক্ষা ও রাজনীতির পাঠ শেষ করে ও আজ আমি বঙ্গবন্ধুর সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ পটিয়া পৌরসভার    রাজনীতির সাথে সম্পর্কিত। দীর্ঘ এই রাজনীতির পথচলায় আমি কখনও কারো সাথে প্রতিহিংসার রাজনীতি করি নাই । কিন্তু ইদানীং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি বিষয় আমার দৃষ্টি গোচর হচ্ছে যে আওয়ামী নামধারী খন্দকার মোস্তাকের অনুসারীরা রাজনীতির মাঠে আমার সাথে প্রতিযোগিতায় কূলিয়ে না উঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেইক আইডির মাধ্যমে আমাকে জড়িয়ে বিভিন্ন প্রপাগান্ডা ও গুজব রটাচ্ছে । ইনশাআল্লাহ এই সমস্ত হীন কাজ এলাকাবাসীর দোয়ায় আমার রাজনীতির চলার পথে বাধা সৃষ্টি করতে পারবে না।আমি এই সমস্ত হীন অপকর্মের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। আমি আমার প্রাণের প্রিয় এলাকাবাসী রাজনৈতিক শুভাকাঙ্ক্ষী সহকর্মী সকলের প্রতি অনুরোধ জানাই এই সমস্ত প্রপাগান্ডা  ও গুজবের বিরুদ্ধে সজাগ থাকার জন্য। ইনশাআল্লাহ আপনাদের পাশে ছিলাম আছি থাকবো।সকলে আমার জন্য দোয়া করবেন। 

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু। আমার বিরুদ্ধে দলের কথিপয় অংশ ষড়যন্ত্রের লিপ্ত রয়েছে আচাকরি পটিয়া থেকে বার বার নির্বাচিত এমপি মাননীয় হুইপ আলহাজ্ব শামসুল হক চৌধুরী হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করেছেন এর ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে আগমনী নির্বাচনে শামসুল হক চৌধুরীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে ২ নম্বর ওয়ার্ড সুচক্রদন্ডী কাউন্সিল পদে নির্বাচন করব এমপি সাহেবের নির্দেশ পেলে। তিনি সকলের কাছে দোয়া প্রার্ঘনা করেন।

নওগাঁর আত্রাইয়ে কামিল পাস করেও আজ সে সবজি ব্যবসায়ী বিক্রেতা

 নওগাঁর আত্রাইয়ে কামিল পাস করেও আজ সে সবজি ব্যবসায়ী বিক্রেতা


মোঃ ফিরোজ হোসাইন,রাজশাহী ব্যুরোঃকামিল পাস করেও তিনি আজ সবজি বিক্রিতা ৷ সাধারন মধ্য বিত্ত পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন তিনি নাম- মোঃ রইচ উদ্দিন প্রাং, পিতা-মোঃ মেছের আলী,সাং+পোঃ হাটকালুপাড়া, আত্রাই,নওগাঁ। ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস ১৯৯৮ সালে তার নিজ গ্রামের মাদ্রাসা হাটকালুপাড়া দাখিল মাদ্রসা থেকে প্রথম বিভাগে পাশ করেন দাখিল(মার্টিক) ২০০২ সালে একই গ্রামের মাদ্রসা থেকে পাস করেন আলিম(আই এ), এবং ফাজিল(বি এ)২০০৪সালে ও কামিল (এম এ)তাফসীর ২০০৬ সালে রাজশাহী ইসলামিক বিঃ বিদ্যালয় পাস করেন। পিতার অভাবি সংসারে অনেক কষ্ট করে লেখা পরার কাজ শেষ করেন তার মনের আশা ছিলো সে একজন লেকচারার হবেন, কিন্তু বর্তমান সমাজের অর্থলোভী পিশাজদের কারনে সে কোন যায়গাতে চাঁন্স পায়নি, তার প্রতিভার দিকে দৃষ্টি দিয়ে তার এলাকায় একটি নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তাকে লেকচারার এর দায়িত্ব দেওয়া হয়। তিনি সেখানে বেগার দেওয়া শুরু করেন কিন্তু খোদার দেওয়া পেট তো আর কারো কথা শুনেনা তাই তিনি শুরু করেন ফুটপাতে বসে তরকারি বিক্রি করতে। বলা হয় শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড, আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও আমি একটি শিক্ষিত জাতি দিবো, এটাই কি এই সমাজের শিক্ষার দাম। আজ দেশে হুহ করে শিক্ষিত বেকার বৃদ্ধি হচ্ছে। তাই এই জাতির কাছে সকলের দাবি শিক্ষার মুল্যায়ন করা হোক পরিপূর্ণ দাম দেওয়া হোক শিক্ষার ৷

ইউটিউবে সংবাদ প্রচার করতেও সরকারি অনুমতি লাগবে

ইউটিউবে সংবাদ প্রচার করতেও সরকারি অনুমতি লাগবে

নিউজ ডেস্ক : আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে গণমাধ্যম কেন্দ্রে ‘বিএসআরএফ সংলাপ’ অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইউটিউব চ্যানেল ও আইপি টিভি সংবাদ পরিবেশন করতে পারবে না।

এ সংলাপের আয়োজন করেছেন বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ)।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা ইউটিউব চ্যানেল এবং আইপি টিভি নিবন্ধনের জন্য দরখাস্ত আহ্বান করেছি। সেগুলো তদন্তের কাজ চলছে। প্রাথমিক তদন্তের কাজ শুরু হয়েছে। এরপর আমরা নিবন্ধন দেয়ার কাজ শুরু করব।

হাছান মাহমুদ আরও বলেন, আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, আইপি টিভিগুলো শুধুমাত্র এন্টারটেইনমেন্ট চ্যানেল হিসেবে কাজ করবে। সমস্ত বিষয়গুলো নরমাল টেলিভিশন চ্যানেলের মতো করার কথা নয়, এ রকম সিদ্ধান্ত ছিল।

সূত্র : আরটিভি

১৫ দফা দাবীতে মোংলা বন্দরে নৌযান শ্রমিকদের মানববন্ধন, কর্মবিরতির হুঁশিয়ারী

 ১৫ দফা দাবীতে মোংলা বন্দরে নৌযান শ্রমিকদের মানববন্ধন,  কর্মবিরতির হুঁশিয়ারী


মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃঢাকা, খুলনা, মোংলা ও চট্টগ্রামসহ সকল নদী বন্দরে নৌ শ্রমিকদের ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন, নৌযান শ্রমিকদের নিয়োগপত্র চালু, সার্ভিস বুক প্রদাণ, শতভাগ খাদ্য ভাতাসহ ১৫ দফা দাবীতে মোংলায় মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে বাংলাদেশ লাইটার শ্রমিক এ্যাসোসিয়েশন। বৃহস্পতিবার দুপুরে পৌর শহরের মেরিন ড্রাইভ সড়কে লাইটার শ্রমিক এ মানববন্ধন করেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির মোংলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মামুন হাওলাদার, সহ-সভাপতি মাইনুল হোসেন মিন্টু ও বাবু হাওলাদার। এ সময় বক্তারা বলেন, আগামী ১৯ অক্টোবর সন্ধ্যার মধ্যে তাদের দাবীকৃত ১৫ দফা মেনে না নিলে ওইদিন সন্ধ্যা থেকে সারাদেশে নৌযান শ্রমিকেরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন শুরু করবে। 

বড়লেখায় বিদ্যালয় ভবনের ছাদ ভেদ করে ভিতরে পানি!

বড়লেখায় বিদ্যালয় ভবনের ছাদ ভেদ করে ভিতরে  পানি!


স্কুলের ছাদ পরিদর্শন  

আকরাম হোসাইন মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার নারী শিক্ষা একাডেমি ডিগ্রি কলেজ।নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার আগেই বিদ্যালয় ভবনের ছাদ চুইয়ে পড়ছে পানি (১৫ অক্টোবর) দুপুরে ভবন পরিদর্শন করেন বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শামীম আল ইমরান।ইউএনও’র পরিদর্শনের পর ভবনটির ত্রুটিগুলো মেরামতের কাজ শুরু করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স রুসমত আলম।

এ সময় ইউএনও’র সাথে বড়লেখা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হাওলাদার আজিজুল ইসলাম, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের মৌলভীবাজার কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী মো. শামীম, নারী শিক্ষা একাডেমি ডিগ্রি কলেজের উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল উদ্দিন ও নারী শিক্ষা একাডেমি মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাজহারুল ইসলাম, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক রুসমত আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।মো. শামীম বলেন:- কিছু দাগের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এই ত্রুটিগুলো দ্রুত সমাধান করার জন্য ঠিকাদারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঠিকাদারের লোকজন কাজ শুরু করে দিয়েছেন। এরপর কিছু দিন পর্যবেক্ষণ করে ভবনে রংয়ের কাজ হবে।’

উল্লেখ্য, গত প্রায় ছয় মাস আগে নারীশিক্ষা একাডেমি মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের চার তলা নতুন ভবনের ছাদের ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয়। কাজ সম্পন্ন হওয়া ছাদ চুইয়ে পড়ছে পানি। চুইয়ে পড়া জায়গা স্যাঁতসেঁতে হয়ে গেছে। কিছু স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছিল। সিমেন্টের প্রলেপ দিয়ে এগুলো ঢেকে দেওয়া হয়। এই ভবন নির্মাণে সরকারের ব্যয় হচ্ছে ২ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। কাজটি সম্পন্ন করছে মেসার্স রুসমত আলম নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

মোংলায় নবনির্মিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন

 মোংলায় নবনির্মিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃ খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, দেশ স্বাধীনের পর ষড়যন্ত্র করে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিলো। আর সেই ষড়যন্ত্রকারীরা ২১ বছর আওয়ামী লীগ সরকারকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার বাহিরে রেখেছিলো। অধ্যাদেশ আর কালো আইন জারি করে বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার করতে দেয়া হয়নি। বৃহস্পতিবার সকালে মোংলায় আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নতুন ভবন উদ্ধোধনের সময় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই সর্বপ্রথম মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা ৩শ টাকা দিয়ে শুরু করেছিলেন আর এখন তা বেড়ে দাড়িয়েছে ১২ হাজার টাকা। শেখ হাসিনা সরকারই একমাত্র মুক্তিযোদ্ধাদের অবদানের স্বীকৃতি ও অনুদান প্রথা চালু করেছেন। অনুষ্ঠানে বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন নাহার হাই, সহকারী কমিশনার (ভূমি) নয়ন কুমার রাজবংশী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী ইজারদার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডিপুটি কমান্ডার শেখ আঃ রহমান, মুক্তিযোদ্ধা ফকির আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুনীল কুমার বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম হোসেন, পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম, সোনাইলতলা ইউপি চেয়ারম্যান নারজিনা বেগম, মিঠাখালী ইউপি চেয়ারম্যান ইস্রাফিল হাওলাদার, চাঁদপাই ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা তারিকুল ইসলাম, বুড়িরডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান নিখিল চন্দ্র রায় ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকতার্ ইকবাল বাহার চৌধুরী  উপস্থিত ছিলেন। নতুন ভবন উদ্ধোধন পরবর্তী সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রশাসক কমলেশ মজুমদার। সভায় স্থানীয় সকল মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত ছিলেন। 

ঝিনাইদহে ৩০০ পিচ ইয়াবা সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

 ঝিনাইদহে ৩০০ পিচ ইয়াবা সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

 


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা  ব্যুরো প্রধানঃঝিনাইদহ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ মিজানুর রহমান এর নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার এসআই(নিরস্ত্র) মোঃ রফিকুল ইসলাম সংগীয় অফিসার ও ফোর্সসহ ঝিনাইদহ থানা এলাকায় মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযানে ঝিনাইদহ কেন্দ্রিয় বাস টার্মিনাল এলাকা হতে ৩০০ (তিনশত) পিচ অবৈধ মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট সহ আসামী রবেদুল (৩৫), পিতা-আবুল কাশেম, মাতা-মোছাঃ রশিদা খাতুন, সাং-ঘোড়ামারা, ডাকঘর-তেলিগাংদিয়া, থানা-দৌলতপুর, জেলা-কুষ্টিয়াকে আটক করেন। এ বিষয়ে ঝিনাইদহ থানায় নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে।

পটিয়ায় দোকান থেকে উচ্ছেদ করতে হত্যার হুমকি প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

পটিয়ায় দোকান থেকে উচ্ছেদ করতে হত্যার হুমকি প্রকাশিত  সংবাদের প্রতিবাদ

পটিয়া প্রতিনিধিঃ- দৈনিক চট্টগ্রাম মঞ্চ ও দৈনিক ইনফো বাংলা পএিকাসহ একাধিক অনলাইন ১৪ ও ১৫ অক্টোবর পটিয়া শহিদ মিনার সংলগ্ন পটিয়া সুপার মার্কেট ব্যাবসায়ি মোঃ সোহেলকে দোকান থেকে উচ্ছেদ করতে হত্যার হুমকি শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের তিব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়েছেন, পটিয়া সুপার মার্কেটে  মনেরেখ কাপড় দোকানের মালিক মোঃ ইমরান। ইমরান তার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞাপ্তিতে জানান, ২০০৭ সালে মনেরেখ  দোকানটি  জমিদার আবু তাহের গং থেকে  ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত সুনামের সাথে ব্যবসা বানিজ্য করে আসছিলাম। এ প্রতিষ্টানের মাধ্যমে আমার সুনাম অর্জন হয় । জনৈক মোঃ সোহেল কে আমি ২০০৯ সালে আমার মনেরেখ কাপড় দোকানে বেতন দিয়ে কর্মচারী নিয়োগ করি৷ এই পর্যন্ত সোহেল আমার দোকানের কর্মচারী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন যাবত আমার দোকানে কর্মচারী থাকায় সে আমার কাছেই বিভিন্ন সময়ে ২২ লাখ টাকা গ্রহণ করে। উক্ত সমুদয় টাকা না দিতে হটাৎ মোঃ সোহেল রুপ পরিবর্তন করে আমার মনেরেখ দোকান তার দাবি করে রাজস্থান নামকরণ করার পায়তারা চালাচ্ছে। আমি এ ব্যাপারে পটিয়া থানায় অভিযোগ করেছি এবং পটিয়া আদালতে মামলা দায়ের প্রস্তুতি নিচ্ছি। মোঃ সোহেলকে কোন প্রকার হত্যার হুমকি দেওয়া হয়নি এটি সম্পুর্ন মিথ্যা ভিত্তিহীন সাজানো সংবাদ আমি এর তিব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং উক্ত সংবাদে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। পাশাপাশি পটিয়ার প্রায় লোকজন জানে মনেরেখ দোকানটি আমার এই দোকান নিয়ে যে কোন ষড়যন্ত্র হলে আমার পাশে  মানবিকভাবপ এগিয়ে এসে সহযোগীতা করার আহবান জানাচ্ছি। 



প্রতিবাদকারী  

 মোঃ ইমরান 

কর্ণধার মনেরেখ 

পটিয়া আদালত রোড়                                                          

ঝিকরগাছায় জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস উদযাপন

ঝিকরগাছায়  জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস উদযাপন


মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা প্রতিনিধিঃউন্নত স্যানিটেশন নিশ্টিত করি, করোনা ভাইরাস মুক্ত জীবন গড়ি ও সকলের হাত পরিচ্ছন্ন থাক” এই দু’টি স্লোগানকে সামনে রেখে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদ চত্তরে জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোঁয়া দিবস উদযাপন করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার সময় জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোঁয়া দিবস উপলক্ষ্যে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের আয়োজনে ও  উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর উপ সহকারী প্রকৈাশলী অন্তরা সরকারের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম রেজা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুবনা তাক্ষী, উপজেলা প্রকৌশলী শ্যামল কুমার বসু, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার এএফএম ওয়াহিদুজ্জামান, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার বিএম কামরুজ্জামান, উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার আরব আলী, উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার নাসরিন আখতার সুলতানা, ঝিকরগাছা প্রেসক্লাবের সভাপতি এমামুল হাসান সবুজ, সাংবাদিক আফজাল হোসেন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর সিসিটি জেসমিন নাহার, ম্যাকানিক্স আঃ গফুর, আনোয়ার হোসেন, অফিস সহায়ক আব্দুস সালাম মিয়া প্রমুখ।

নওগাঁ-৬ উপনির্বাচন নৌকা বাংলাদেশের গণতন্ত্র উন্নয়ন ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক-এসএম কামাল

 নওগাঁ-৬ উপনির্বাচন নৌকা বাংলাদেশের গণতন্ত্র উন্নয়ন ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক-এসএম কামাল


মোঃ  ফিরোজ হোসাইন,রাজশাহী ব্যুরোঃবাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত এস এম কামাল হোসেন বলেছেন, নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে দেশবাসি কোনদিন বঞ্চিত হয়নি। তাই সকলে দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে নওগাঁ-৬ উপনির্বাচনে আগামী ১৭ অক্টোবর দিনভর নৌকা মার্কায় ভোট দিন ও জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করুন। নৌকা বাংলাদেরর উন্নয়ন, ও স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধের প্রতীক। দেশবাসি নৌকা প্রতীকে ভোট দেয় বলে শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় এসে দেশের প্রান্তিক জনপদ থেকে শুরু করে সার্বিক উন্নয়ন সব স্থানে উন্নয়নের জোয়ারে ভাসে। যা কখনো অন্য কোন সরকারের সময়ে হয়নি। তাই বর্তমান সরকার ৫হাজার কোটি টাকার বাজেট নিয়ে সার্বিক উন্নয়ন প্রকল্প চালিয়ে যাচ্ছে। তাই জনগন  বারবার নৌকা মার্কা প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেছেন। বিএনপির-জামায়াতের হাতে বাংলাদেশ কখনো নিরাপদ নয়। ২০০১ সালে চারদলীয় জোট ক্ষমতায় এসে আত্রাই রানীনগরকে রক্তাক্ত জনপদ হিসেবে দেশের সামনে পরিচিত করেছিল। সর্বহারা-জেমবি দিয়ে শান্তির জনপদের মানুষের উপর অত্যাচার, জুলুম, হত্যা, গুম করা হয়েছে। কিন্তু আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর আত্রাই-রানীনগর এখন উন্নয়ন, নিরাপদ ও শান্তির জনপদে পরিণত হয়েছে। বর্তমান সরকার মানুষের জানমালের নিরাপত্তা রক্ষায় বিশেষ কোনো গোষ্ঠির কাছে মাথা নত করেনা। তিনি মঙ্গলবার বিকেলে নওগাঁর অত্রাই-রাণীনগর জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচন উপলক্ষে আত্রাই উপজেলা ভবাণীপুর ফুটবল মাঠে এক বিশেষ প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা গুলো বলেন।

আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শ্রী নৃপেন্দ্রনাথ দত্ত দুলালে’র সভাপতিত্বে বিশেষ প্রতিনিধি সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নওগাঁ-৬ আসনের উপ-নির্বাচনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ার হোসেন হেলাল, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধাসাবেক এমপি আব্দুল মালেক, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাকিরুল ইসলাম সান্টু, আত্রাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবাদুর রহমান এবাদ, রাণীনগর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ফরিদা পারভীন, আত্রাই উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম, আবসরপ্রাপ্ত সচীব ড. ইউনূছ আলী, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এসএম জহুরুল ইসলাম ঈদুল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. ওমর ফারুক সুমন, আত্রাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধূরী গোলাম মোস্তফা বাদল, সাহাগোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বাবু, সাহাগোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শামছুর রহমান প্রমুখ।

আসন্ন ১নং চাকামাইয়া ইউনিয়ন নির্বাচনে মেম্বর পদে কামাল মৃধা এর রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা

 আসন্ন ১নং চাকামাইয়া ইউনিয়ন নির্বাচনে মেম্বর পদে  কামাল মৃধা এর রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা

নাহিদ পারভেজ,কলাপাড়া উপজেলা প্রতিনিধিঃআসন্ন আগামী কলাপাড়া ১নং চাকামাইয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার  পদে কামাল মৃধা এর রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা। জনসেবার কারনে সাধারন মানুষের কাছে তিনি অত্যান্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি হিসেবে ব্যাপক সু-পরিচিতি লাভ করেছেন।  মেম্বার না  হয়েও তিনি সবসময় নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন সাধারণ মানুষের সেবায়। সাধ্য অনুযায়ী সাহায্য করেছেন সাধারণ মানুষের।

ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ছিলেন সাধারণ মানুষের সাথে। করোনার এই মহা দূর্যোগেও তিনি রয়েছেন তাদের পাশে। তিনি নিজেকে মানুষের সেবায় উৎসর্গ করে দিতে চান। স্থানীয় সাধারণ জনগন বলেন,আমরা আমাদের এই ৫নং ওয়ার্ডে কামাল ভাইয়ের মতো একজন জনপ্রতিনিধি আমাদের পাশে চাই

ইতোমধ্যে নতুন পুরান ভোটারদের মুখে  তার নামটি এলাকায় বেশি উচ্চারিত  হচ্ছে। সর্বোপরি মাদক, দূর্নীতি, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজীর বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবার মানুষিকতা নিয়ে-আগামী চাকামাইয়া ইউনিয়ন নির্বাচনে জনগণের ভালবাসা ও দোয়া নিয়ে ৫নং ওয়ার্ডকে একটি মডেল ওয়ার্ড গড়ার প্রত্যয়ের আশা রয়েছে।স্থানীয় জনগন জানান, তিনি আমাদের সকল বিপদ আপদে এগিয়ে আসেন। রাত দিন যখনই চাই আমরা তাকে পাশে পাই। আসন্ন নির্বাচনে কামাল মৃধা ভাইকেই আমরা ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার হিসেবে দেখতে চাই। দল মত নির্বিশেষে সকল শ্রেনী-পেশার মানুষ তার আচার- ব্যবহারে মুগ্ধ। তাছাড়া তিনি বিভিন্ন সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে মানুষের সেবা ও ব্যক্তিগত ভাবে এলাকার অসহায়-গরীরদেরকে সেবা অব্যাহত রেখেছেন। রাজনীতিতে রয়েছে তার বলিষ্ঠ অবদান। তাছাড়া তিনি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক সংগঠনের সাথে সংপৃক্ত রয়েছেন। 

বেতমর,হোসনাবাদ, এলাকার একজন পরিছন্ন ও মার্জিত ব্যক্তি হিসেবে যুবসমাজসহ সর্বস্তর মানুষের কাছে একজন প্রিয় মুখ কামাল মৃধা। তিনি বিগত বাংলাদেশ আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের চাকামাইয়া ইউনিয়নের সদস্য সচিব ও বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস জীবি সমিতির চাকামাইয়া ইউনিয়েনের সাধারণ সম্পাদক এর দ্বায়ীত্ব পালন করে আসছেন।কামাল মৃধা বলেন, কলাপাড়া ১নং চাকামাইয়া ইউনিয়নে ৫নং ওয়ার্ড থেকে মেম্বার পদে নির্বাচিত হলে। শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে উন্নয়নের রােল মডেল হিসেবে পরিনত করব, আরো বলেন আমার  নির্বাচনী এলাকা ৫নং ওয়ার্ডকে একটি মডেল ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলবো।মূলত: ওয়ার্ডবাসীর চাহিদার দিকে লক্ষ্য রেখেই তিনি প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা পোষন করেছেন।

শৈলকুপায় জোড়া খুনের পর এই বার নারীর উপর হামলা

শৈলকুপায় জোড়া খুনের পর এই বার নারীর উপর হামলা




সম্রাট হোসেন, ঝিনাইদহে প্রতিনিধিঃঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার ৬ নং সারুটিয়া ইউনিয়নে যেনো খুন ও হামলার মহা মিছিল চলছে। গত ১ সপ্তাহের ব্যবধানে ইউনিয়নে ভটবাড়িয়া ও বৃত্তিপাড়া গ্রামে নারী সহ দুইজন কে হত্যা করা হয়। এর পর ১৩ /১০/২০২০ রোজ মঙ্গলবার রাত ৮ টার সময় একই ইউনিয়নের বৃত্তিপাড়া গ্রামের সুমাইয়া খাতুন (১৮) নামের এক পুত্রবধুর উপর হামলা করা হয়। আহাত সুমাইয়া একই গ্রামের আহাদ বিশ্বাসের স্ত্রী বলে যানা যায়। বর্তমানে তিনি কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসারত আছেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সুমাইয়াকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। কর্তব্যরত ডাক্তার বলেছেন তার অবস্থা এখনো সংকটাপন্ন তার মাথার পিছনে রড দিয়ে প্রচণ্ড আঘাত করাতে তার মস্তিষ্ক রক্ত জমাট বেঁধেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত থানায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছেলি।

ঘরে বসে কমিটি করার অভিযোগে মহেশপুর বিএনপির পদত্যাগের হিড়িক

 ঘরে বসে কমিটি করার অভিযোগে মহেশপুর বিএনপির পদত্যাগের হিড়িক

খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃঘরে বসেই ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার শ্যামকুড় ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন হওয়ায় ৪জন যুগ্ম আহ্বায়ক সহ ১১জন পদত্যাগ করেছে। পদত্যাগকারী নেতাদের অভিযোগ জেলা ও উপজেলা বিএনপির নেতারা ঘরে বসেই শ্যামকুড় ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি ঘোষণা করায় তারা এ পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নবগঠিত শ্যামকুড় ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আমিনুর জামান জানান, জেলা ও উপজেলা বিএনপির নেতারা ঘরে বসেই কমিটি দেওয়ার কারণে নতুন কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক এমদাদুল হক হেলাল, আলতাফ মেম্বার, আব্দুর রহিম, সদস্য মজনুর রহমান মাস্টার, মখলেছুর রহমান, শহিদুল ইসলাম, নূরু খা, লুৎফর রহমান বিশ্বাস, আব্দুল মালেক ঘরে বসে গঠনকৃত নবগঠিত কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন। পদত্যাগের কপি জেলা ও উপজেলা বিএনপির নেতাদের কাছে পৌছে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান, নবগঠিত কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক আমিনুর জামান।

তিনি বলেন বিএনপিকে ধ্বংস করতেই কিছু অসাধু বিএনপির নেতারা ঘরে বসে কমিটি গঠন করে যাচ্ছে। যারা আন্দোলন সংগ্রামে কোনদিন মাঠে নামেনি তাদেরকেই কমিটিতে রাখা হচ্ছে। সে কারণেই আজ মহেশপুর উপজেলা সহ প্রতিটা ইউনিয়ন বিএনপির কমিটির নাস্তানাজুক অবস্থা হয়ে দাড়িয়েছে।

কলারোয়া হেলাতলায় এক পরিবারের ৪ সদস্যকে জবাই করে হত্যা

 কলারোয়া হেলাতলায় এক পরিবারের ৪ সদস্যকে জবাই করে হত্যা

আব্দুল জব্বার/আজহারুল ইসলাম সাদী স্টাফ রিপোর্টার।।সাতক্ষীরার কলারোয়ায় একই পরিবারের ৪ সদস্যকে জবাই করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) ভোররাতে উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের খলসি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, হেলাতলা খলসি গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে হ্যাচারি মালিক শাহিনুর রহমান (৪০), তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন (৩০), ছেলে সিয়াম হোসেন মাহি (৯) ও মেয়ে তাসনিম (৬)।


নিহত শাহিনুর রহমানের ছোট ভাই রায়হানুল ইসলাম জানান, বাড়িতে মা ও বড় ভাইয়ের পরিবারের ৪জনসহ তারা ছয়জন থাকতেন। মা কাল আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন তুলসীডাংগা গ্রামে।  তিনি (রায়হানুল) ছিলেন পাশের ঘরে। ভোরে পাশের ঘর থেকে তিনি বাচ্চাদের কান্নার ও চিৎকারে আওয়াজ শুনতে পান। তাৎক্ষণিক এগিয়ে গিয়ে দেখেন ঘরের বাইরে থেকে আটকানো। দরজা খুলে দেখা যায় বিভৎস দৃশ্য। এর কিছুক্ষণ পর বাচ্চারাও মারা যায়।তিনি আরও জানান, তাদের সাথে জমি জায়গা নিয়ে পাশের কিছু লোকের বিরোধ ছিল। কিন্তু কারা এ ঘটনা ঘটালো তা বুঝতে পারছি না।

কলারোয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মফিজুল ঘটনাস্থল থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, নিজেদের ঘরের মধ্যে গৃহ প্রধান শাহিনুর রহমানসহ চারজনকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। এদের মধ্যে শাহিনুরের পা বাধা ছিল এবং তাদের চিলে কোঠার দরজা খোলা ছিল। ধারণা করা হচ্ছে ছাদের চিলে কোঠার দরজা দিয়ে হত্যাকারীরা ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে। ঘটনার রহস্য উন্মোচনে থানা পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

মাধবপুরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে প্রতিবন্ধী ভাইকে খুন

 মাধবপুরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে প্রতিবন্ধী ভাইকে খুন




লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃহবিগঞ্জের মাধবপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের পুর্ব মাধবপুরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে আপন প্রতিবন্ধী ভাই রাষ্টু মিয়াকে (৪০) মেরে ফেলার অভিযোগ উঠেছে, নিহত রাষ্টু মিয়া ওই এলাকার গুনি মিয়ার ছেলে এলাকাবাসী জানান গুনি মিয়া ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মাদক ছিনতাই মামলা রয়েছে তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়েপুর্ব মাধবপুর, বার চান্দুরা, মুরাদপুর ও হরিশ্যামাসহ অনেক গ্রামবাসী।

বুধবার রাতে এক সভায় মিলিত হয় সভায় কয়েক হাজার লোক, জড়িত হয় সভা শেষে লোকজন বাড়ি ফেরার পথে গুনি মিয়ার লোকজন এলাকা বাসীর উপর হামলা চালায়, জনরোষ থেকে বাঁচতে পরিবারের সদস্যরা তাদের প্রতিবন্ধী ভাই রাষ্টু মিয়াকে ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে মৃমৃর্ষ অবস্থায় তাকে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন

এ ব্যাপারে সভায় উপস্থিত আন্দিউড়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ আক্তার মিয়া জানান, আমার ওয়ার্ডসহ কয়েকটি এলাকার লোকজনের উপজেলায় যাতায়াতের এক মাত্র রাস্তা গুনি মিয়ার বাড়ির সামনে দিয়ে তার ছেলেরা মাদক ব্যবসার পাশাপাশি আমার এলাকার লোকজনের বাড়ি যাওয়ার পথে প্রায়ই ছিনতাই করে টাকা পয়সা লুট করে নিয়ে যায়।তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে কয়েক গ্রামের লোকজন সভা করে স্থানীয়প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়, সভা, শেষে লোকজন বাড়ি ফিরে যাওয়ার সময় গুনি মিয়ার ছেলেরা গ্রামবাসীর উপর হামলা চালায়। এবং এলাকাবাসীকে ফাঁসাতে তাদের প্রতিবন্ধী ভাইকে মেরে ফেলে সভায় উপস্থিত মাধবপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনে নবনির্বাচিত।

কাউন্সিল আফজাল পাঠান জানান- তাদের অত্যাচারে লোকজন অতিষ্ঠ। তাই প্রতিকারের জন্য কয়েক এলাকার লোকজন সভায় বসেছিল সভা শেষে লোকজন বাড়ি ফেরার পথে তাদের উপর হামলা চালায় গুনি মিয়ার লোকজন। এ ব্যাপারে থানার ডিউটি অফিসার জানান এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে পরিস্থিতি এখন শান্তু।

যশোরে পুলিশ সুপারের কার্যালয় শারদীয় দুর্গাপূজার উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত

 যশোরে পুলিশ সুপারের কার্যালয় শারদীয় দুর্গাপূজার উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত



আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।যশোরের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ১৪-১০-২০২০ইং তারিখে বিকাল ৩,৩০ মিনিটের সময় শারদীয় দুর্গাপূজা-২০২০ উপলক্ষে যশোর পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে, জেলা পুলিশ যশোরের আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনার সভায় সভাপতিত্ব করেন যশোর জেলার পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন। এসময় পুলিশ সুপার আসন্ন পূজা উদযাপন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক বিভিন্ন প্রকার দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য প্রদান করেন।

আরোও উপস্থিত ছিলেন, অসীম কুন্ডু, সভাপতি, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ. যশোর জেলা শাখা, যোগেশ চন্দ্র দত্ত, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, যশোর জেলা শাখা, যশোর সহ জেলা কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দু।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন শিকদার, অতিঃ পুলিশ সুপার, (অপরাধ), যশোর, মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম,  অতিঃ পুলিশ সুপার, (জেলা বিশেষ শাখা), যশোর, মোঃ গোলাম রব্বানী শেখ, অতিঃ পুলিশ সুপার, ‘ক’ সার্কেল, যশোর, জামাল আল নাসের, অতিঃ পুলিশ সুপার, ‘খ’ সার্কেল, যশোর, মোহাম্মদ অপু সরোয়ার অতিঃ পুলিশ সুপার (সদর), যশোর, সোয়েব আহমেদ খান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার, মনিরামপুর সার্কেল,  জুয়েল ইমরান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার নাভারন সার্কেল, যশোর, সকল থানার অফিসার ইনচার্জ, ডিআইও-১, আরআই পুলিশ লাইন্স, আরওআই রিজার্ভ অফিস, পুলিশ পরিদর্শক শহর ও যানবাহনসহ জেলা পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাগণ।

চবি অফিসার সমিতির তিনদফা আন্দোলনে নোবিপ্রবি অফিসার্স এসোসিয়েশনের সমর্থন

 চবি অফিসার সমিতির তিনদফা আন্দোলনে নোবিপ্রবি অফিসার্স এসোসিয়েশনের সমর্থন



নিউজ ডেস্কঃচট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার (চবি) সমিতির চলমান তিনদফা দাবিতে আন্দোলনে সমর্থন জানিয়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি) অফিসার্স এসোসিয়েশন। তিনদফা দাবিসমূহ হলো-ঢাকা, রাজশাহী ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় সহকারী রেজিস্ট্রার ও সমমানের পদে ৬ষ্ঠ গ্রেড এবং ডেপুটি রেজিস্ট্রার ও সমমানের পদে ৪র্থ গ্রেড নির্ধারণের মাধ্যমে গ্রেডের সমতা আনতে হবে। প্রশাসক পদ বাতিলসহ অফিসারদের সব পদ থেকে শিক্ষকদের প্রত্যাহার এবং বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সিনিয়র অফিসারদের পদায়নের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা  নিতে হবে। এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসারদের ‘ডিউ ডেইট’ সমস্যা নিরসন করে পূর্বের ন্যায় চালু করতে হবে। 


উক্ত দাবিসমূহে পূর্ণ সংহতি জ্ঞাপন করে এক বিবৃতিতে নোবিপ্রবি অফিসার্স এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ জানায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে এবং দেশরতœ শেখ হাসিনার উন্নত ও আধুনিক বাংলাদেশ গড়তে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ নিরলসভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছে।


আমরা দ্ব্যার্থহীন ভাষায় বলতে চাই, চবি অফিসার সমিতির নায্য ও যৌক্তিক দাবিসমূহে আদায়ে আমাদের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত কর্মকর্তাদের দাবিসমূহে পূরণে আমরা বরাবরের মতো ঐক্যবদ্ধ। একইসাথে বাংলাদেশ আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনকে তিনদফা দাবিসহ কর্মকর্তাদের অন্যান্য যৌক্তিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে একযোগে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি গ্রহণে অনুরোধ করছি।