লাকসাম ৫০ একর জমিতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ধানের ছাড়া রোপণ

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ লাকসাম উপজেলার সবচেয়ে বড় কৃষি মাঠ হিসেবে পরিচিতি উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের নোয়াপাড়া- ছনগাঁও ব্লকের ডিজিটাল পদ্ধতিতে জমির আইল উঠিয়ে যৌথ খামার ব্যবস্থাপনা যান্ত্রিক চাষাবাদ, শ্রমিক ছাড়াই রাইস ট্রান্সপার ডিজিটাল (ধানের চারা রোপন) মেশিনের সাহায্যে দ্বিতীয় বারের মতো ৫০ একর জমিতে ধানের চারা রোপনের মধ্যদিয়ে কৃষকরা দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি শুভ সূচনা করেন। 
ডিজিটাল কৃষি জমির মাধ্যমে ওই অঞ্চলের কৃষকরা এ সুফল পেয়ে মহা খুশি। ১৩ জানুয়ারি বুধবার  ২০২১ নোয়াপাড়া- ছনগাঁও ব্লকে ট্রান্সপার ডিজিটাল মেশিনে (ধানের চারা রোপন) পর্যবেক্ষন ও পরিদর্শন করেন  লাকসাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৈয়দ শাহিনুর ইসলাম, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা (কুমিল্লা) আলী আহমেদ, লাকসাম উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি অফিসার এ.টি.এম কামরুল আহ্সান, এ.এস.এম আবদুল হাই প্রমুখ। 

 যৌথ কৃষি খামার ও কমিউনিটি এন্টারপ্রাইজ ব্যবস্থাপনার সভাপতি মোঃ সাইফুল ইসলাম চৌধুরী মেম্বার প্রতিবেদককে  জানান, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, লাকসামের গর্ব মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী, কান্দিরপাড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান  মোঃ ওমর ফারুকসহ বিশেষ করে মাননীয় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এমপির আন্তরিক প্রচেষ্টায় বৃহত্তর কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার একমাত্র ডিজিটাল পদ্ধতিতে কৃষি চাষাবাদের বৃহত্তম প্রকল্পটি কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের নোয়াপাড়া-ছনগাঁও গ্রামে- এ অঞ্চলের কৃষকরা মাননীয় মন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞ। 
এই কৃষি প্রকল্পটি ৫০ একর জমিতে চাষাবাদ হওয়ায় এ অঞ্চলের কৃষকরা লাভ ও সুবিধা গ্রহণ করায় আমি এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে সরকার ও মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের প্রতি চির কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট