জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর যৌথ অভিযানে চন্দনাইশে অবৈধ পাঁচ ইটভাটা ধ্বংস

সেলিম চৌধুরী স্টাফ রিপোর্টারঃ-চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের যৌথ অভিযানে চন্দনাইশে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে  ৫টি অবৈধ ইটভাটা। বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার পূর্ব হাশিমপুর এলাকায় এ অভিযান চলে।
অভিযানে নেতৃত্ব দেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজোয়ানা আফরিন ও পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক শেখ মুজাহিদ। এছাড়াও কাঞ্চন নগর এলাকায় অভিযান চালানোর দাবি জানান এলাকাবাসী। কাঞ্চন নগর এলাকায় বেশ কয়েকটি অবৈধ ইটভাটা রয়েছে। ঐসব ইটভাটায়  পাহাড় এর মাটি এবং গাছ ব্যাবহার করছে। সরকারের নিয়ম নীতি অপেক্ষা করে মুনাফালোভি ইটভাটার মালিকগণ এ সমস্ত কাজ চালিয়ে আসছে বলে এলাকাবাসী সুএে জানাযায়। সুএে জানা যায়, উচ্চ আদালতের নির্দেশে পরিবেশ রক্ষায় অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে আজ বুধবার চন্দনাইশে অবৈধ ইটভাটা ধ্বংসে অভিযানে নামে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর।
বুধবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলা অভিযানে উপজেলার হাশিমপুর ইউনিয়নের পূর্ব হাশিমপুর এলাকার বিসমিল্লাহ্ ব্রিক ম্যানুফ্যাকচারিং, বার আউলিয়া ব্রিকস, হযরত আলী শাহ্ ব্রিক ম্যানুফ্যাকচারিং, নিউ হযরত আলী শাহ্ ব্রিক ম্যানুফ্যাকচারিং, আর,বি,এল ব্রিকস নামে ৫টি অবৈধ ইটভাটা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়।
অভিযানের সময় র‌্যাব-৭, চন্দনাইশ থানা পুলিশ, আনসার ভিডিপি এবং দমকল বাহিনীর সহ বিপুল সংখ্যক আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য উপস্থিত ছিলেন।
পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক শেখ মুজাহিদ সাংবাদিকদের বলেন, "পরিবেশ রক্ষার জন্য অবৈধ ইটভাটাগুলো ধ্বংসে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। ফলে আমাদের অবৈধ ইটভাটা বন্ধে অভিযান অব্যাহত আছে। তারই অংশ হিসেবে আজ চন্দনাইশে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে হাশিমপুর ইউনিয়নের পূর্ব হাশিমপুর এলাকায় ৫টি অবৈধ ইটভাটা ধ্বংস করা হয়।"
যতগুলো অবৈধ ইটভাটা এখনো সচল রয়েছে পর্যায়ক্রমে সবগুলোতে অভিযান চালানো হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

শেয়ার করুন

প্রকাশকঃ

অফিসঃ হাজী সিরাজুল ইসলাম সুপার মার্কেট, মোহাম্মদপুর মোড়, ছুটিপুর রোড, ঝিকরগাছা, যশোর।

পূর্ববর্তী প্রকাশনা
পরবর্তী প্রকাশনা