সব ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নামুন: ডা: শফিকুর রহমান


স্টাফ রির্পোটার :বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ডা: শফিকুর রহমান বলেছেন, ভাষার অধিকার কেড়ে নেয়ার কারনে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান থেকে শুধু প্রতিবাদই নয়, প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল এবং অধিকার আদায় করেছিল।একটি মাত্র অধিকার কেড়ে নেয়ার কারনে আমরা লড়াই করে বিজয়ী হয়েছিলাম। কিন্তু আজ আমরা সব অধিকারহারা। মানুষের জীবন, সম্মান, মেধা, ভোটাধিকার, বাক স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে।


তিনি জনগনের অধিকার ফিরিয়ে দিতে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে বলেন, সব ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নামুন। দাবী আদায় হবে ইনশাআলল্লাহ। এই অপশাসনের অবসান হবে। রাত দূরে হয়ে সকাল হবে। মুক্তির সূর্য উদিত হবে।গত রোববার রাজধানীর এক মিয়নায়তনে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর নূরুল ইসলাম বুলবুলের সভাপতিত্বে সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট ড. হেলাল উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও মহানগরী দক্ষিণের নায়েবে আমীর মঞ্জুরুল ইসলাম ভূইয়া, সহকারী সেক্রেটারি আবদুল জব্বার, মহানগরীর কর্মপরিষদ সদস্য আবদুস সবুর ফকির।
আরও উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও মহানগরীর কর্মপরিষদ সদস্য মোকাররম হোসাইন, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মজলিশে শুরা সদস্য সৈয়দ সিরাজুল হক, আব্দুস সাত্তার সুমন, আশরাফুল আলম ইমন প্রমূখ।
বক্তব্যের শুরুতে ডা.শফিকুর রহমান ৫২ ভাষা আন্দোলনে নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়েছেন তাদের শহীদ হিসেবে কবুল করার জন্য দোয়া করেন এবং এই আন্দোলন সফল করার জন্য যারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কাজ করেছে তাদের সবাইকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।


জামায়াত আমীর বলেন, ভাষা আন্দোলনে জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমীর প্রফেসর অধ্যাপক গোলাম আযম এর বিশাল অবদান থাকা সত্তেও একটি মহল তার নাম নিশানা মুখে ফেলার চেষ্টা করছে। তারা হয়তো কাগজে কলমে তার নাম মুছে ফেলতে পারবে, কিন্তু মানুষের হৃদয় থেকে কখনই মুছতে পারবে না। ভাষা আন্দোলনের নেতা হিসেবে তাকে রাষ্ট্রীয় ভাবে মর্যাদা দেয়া না হলেও তাঁর বিদায়টা ছিল বর্ণিল। তাঁর নামাজে জানাযা একটি ইতিহাস হয়ে থাকবে। আসলে ইতিহাস থেকে কাউকে মুছে ফেলা যায় না। আমরা আশা করছি, বাংলার ইতিহাস একটি আসল ঠিকানায় পৌছবে।

ডা: শফিকুর রহমান বলেন, বাংলা ভাষার জন্য লড়াই, সংগ্রাম, জীবন দানের ঘটনার তারিখ আমরা অন্য ভাষায় পালন করে থাকি। এটা সবচেয়ে ভালো হতো, যদি ২১ শে ফেব্রয়ারি না হয়ে ৮ ফাল্গুন উদযাপন করা যেতো। তিনি বলেন, ৩২ কোটি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলে। আমাদের কেন হীনমন্যতা থাকবে? কেন আমরা বাংলাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে পারিনি। আদালতে অনেকে বিচার প্রার্থী হন, যারা ইংরেজী ভাষা বুঝেন না। তার মামলার রায় বুঝার জন্য অন্যের দ্বারস্ত হতে হয়। তিনি তার্কিশ, জার্মানিসহ বিভিন্ন ভাষার উদাহরণ দিয়ে বলেন, তারা স্ব স্ব ভাষা চর্চা করে বিশ্বের সাথে টেক্কা দিয়ে চলছে। কিন্তু আমরা নিজ ভাষা নিয়ে বিশ্বের কাছে দাড়াতে পারছি না। তিনি সব ধরনের হীনমন্যতা দূর করে আপন সত্তা বিকশিত করে সামনে এগিয়ে চলার আহবান জানান। তিনি বলেন, ভাষা আল­াহর দান। আমরা অন্য ভাষা রপ্ত করবো। কিন্তু সবাইকে পন্ডিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। নিজ ভাষায় আমরা পান্ডিত্য অর্জন করবো।

জামায়াত আমীর ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপট বর্ননা করতে গিয়ে বলেন, তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানে ৩ টি প্রদেশের মধ্যে জনসংখ্যা ছিল সাড়ে ৪ কোটি। আর ১টি প্রদেশ নিয়ে গঠিত তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে জনসংখ্যা ছিল সাড়ে ৭ কোটি। উর্দু শুধুমাত্র ১টি প্রদেশের ভাষা ছিল। সেই ভাষাকে গোটা পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে চাপিয়ে দেয়ার কারনে পূর্ব পাকিস্তান থেকে শুধু প্রতিবাদই নয়, প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল এবং অধিকার আদায় করেছিল। একটি মাত্র অধিকার কেড়ে নেয়ার কারনে আমরা লড়াই করে বিজয়ী হয়েছিলাম।
ডা. শফিকুর রহমান বলেন, আজ আমরা সব অধিকারহারা। মানুষের জীবন, সম্মান, মেধা, ভোটাধিকার, বাক স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। এ অবস্থা মেনে নেয়া যায়? তাহলে ইতিহাস থেকে আমরা কি শিক্ষা নিলাম? যারা অধিকার আদায় করতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন, তাদের থেকে শিক্ষা নিতে হবে।

তিনি বলেন, এখন সার্বজনীন অধিকার হরনের চেষ্টা করা হচ্ছে। তা মেনে নেয়া যায় না। নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন করে জনগনের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। এজন্য মজলুম জনগনকে পাশে চাই। তিনি উলে­খ করেন, অধিকার কেউ কাউকে দেয় না। লড়াই করে অধিকার আদায় করে আনতে হবে। এজন্য বুকে সাহস থাকতে হয়। আমাদের নেতৃবৃন্দ সেই সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। তারা অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি। তাদের নাম স্বর্ণের অক্ষরে লেখা হয়ে গেছে। কেউ তা মুছতে পারবে না। তিনি উলে­খ করেন, মুসলমানরা সম্মানের জাতি। তারা আল­াহ ছাড়া কারো কাছে মাথা নত করে না।
তিনি দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, শহীদের রক্তের প্রতি কৃতজ্ঞতার দাবী হচ্ছে, সব ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নামুন। দাবী আদায় হবে, ইনশাআল্লাহ। এই অপশাসনের অবসান হবে। রাত দূরে হয়ে সকাল হবে। মুক্তির সূর্য উদিত হবে।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট