নওগাঁর রাণীনগরে এক গৃহবধূর রহস্য জনক মৃত্যু

 রাজশাহী ব্যুরোঃনওগাঁর রাণীনগর উপজেলার মিরাট ইউনিয়ন চরকানাই গ্রামের জেসমিন  ২৮ নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু অভিযোগ উঠেছে৷

 স্বজনদের অভিযোগ জেসমিন কে হয়তোবা হত্যা করা হয়েছে ৷এ ঘটনায় রাণীনগর থানা পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পেরন করেছে ৷ নিহত জেসমিন আক্তার মিরাট চরকানায় গ্রামের সৌদি প্রবাসী আব্দুল বারিকের স্ত্রী এবং একই এলাকার মিরাট ইউনিয়ন  মোল্লাপাড়া গ্রামের বাদেশ আলীর মিয়ে জেসমিন ৷ গৃহবধুর মামা আজাহার আলী বলেন, গত ১৬বছর আগে আনুষ্ঠানিক ভাবে তার ভাগ্নি জেসমিনকে
বিয়ে দিয়৷ বিয়ের পরে তাহার  এক পুত্র সন্তান জন্ম হয়৷ 
এরই মধ্যে জামাই আঃ  বারিক সৌদি আরবে যায়৷  এর পর থেকে জেসমিনের ভাসুর ,শ্বশুর ,শ্বাশুড়িসহ পরিবারের লোকজন নানা কারনে জেসমিন কে অনেক  নির্জাতন করতো৷ 
গত প্রায় এক মাস আগে জেসমিন কে ভাসুর জয়বুলসহ পরিবারের লোকজন মারপিট করলে জেসমিন নিজেই রাণীনগর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন৷

 এরপর স্থানীয় মেম্বর ও গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ বসে বিষয়টি সমাধান করে দেয়৷আজাহার আলী আরো বলেন, তার ভাগ্নি যে মারাগেছে এই খবর টা কেউ  আমাদেরকে  জানায়নি৷ আমরা লোক মারফত জানতে পেরে সেখানে আমরা গিয়েছি৷ আমাদের সন্দেহ হইতেছে ভাগ্নি জেসমিন কে হয়তোবা হত্যা করা হয়েছে৷তবে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য  লাশের ময়না তদন্তের জন্য ইউডি মামলা করেছি ৷

জেসমিনের ভাসুর জয়বুল সহ স্হানীয়রা বলেন, শুক্রবার দুপুরে প্রতিবেশী একটি বিয়ের অনষ্ঠানে বরযাত্রী হয়ে যায় জেসমিন ও তার ছেলে জিহাদ৷ এরপর রাত অনুমান ৯ টার দিকে ফিরে আসে জেসমিন ৷ এ সময় ছেলে জিহাদ বাড়িতে ফিরে আসতে দেরি করাই  জেসমিন তার ছেলে জিহাদকে শাসন করে৷ এমন সংবাদ জিহাদ তার বাবা আঃ বারিককে সৌদি আরবে মোবাইল ফোনে জানালে বারিক ফোনে তার স্ত্রী জেসমিনের সঙ্গে কথা বলেন ৷ এর কিছু পরেই জেসমিন ঘরে  ঢুকে গ্যাস টাবলেট খায়৷ এসময় ছেলে জিহাদ প্রতিবেশীদের ডাক দিলে সাথে সাথে প্রতিবেশীরা  বাহির হয়ে জেসমিনকে উদ্ধার করে নওগাঁ হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে  ভর্তি করান ৷ সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় ওই রাতেই রাজশাহীতে  নিয়ে যাবার পথেই মারা যান জেসমিন৷ 
এ ব্যাপারে রণীনগর থানার ওসি, শাহিন আকন্দ বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করার জন্য জেসমিনের মা জানো বেওয়া ইউডি মামলা দায়ের করেছেন৷ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ মর্গে পেরন করা হয়েছে৷ ময়না তদন্তের জন্য রিপোর্ট হাতে পেলেই মৃত্যুর প্রকৃত ঘটনা জানা যবে৷

শেয়ার করুন

প্রকাশকঃ

অফিসঃ হাজী সিরাজুল ইসলাম সুপার মার্কেট, মোহাম্মদপুর মোড়, ছুটিপুর রোড, ঝিকরগাছা, যশোর।

পূর্ববর্তী প্রকাশনা
পরবর্তী প্রকাশনা