যশোরে বাক প্রতিবন্ধী যুবতি ধর্ষণের সাড়ে তিন মাস পর থানায় মামলা



স্টাফ রিপোর্টারঃ যশোরে বাক প্রতিবন্ধী অজ্ঞাত যুবতি (১৯) ধর্ষনের প্রায় সাড়ে তিন মাস পর কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। যশোর শহরতলীর আরবপুরের নুর মোহম্মদ নঈমের মেয়ে মোছা. লিমা ওরফে রিমা খাতুন বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) মামলা করেন। মামলায় আসমি অজ্ঞাত দেখানো হয়েছে।


মামলায় তিনি উল্লেখ করেছেন, গত ১ আগস্ট রাত অনুমান সোয়া ১১ টার দিকে বোনের বাসার সামনে বসে থাকাকালীন সময় হঠাৎ একটা শব্দ শুনতে পান। রাত ১১ টা ২৮ মিনিেিটর সময় আরবপুর মৎস্য অফিসের সামনে যেয়ে দেখেন ১৯ বছরের একজন অজ্ঞাত যুবতি বিবস্ত্র অবস্থায় রাস্তায় অচেতন হয়ে পড়ে আছেন। তাকে জিজ্ঞাসা করা হলে সে কিছু বলতে পারে না। ধারণা করা হয় সে একজন বাক প্রতিবন্দি। তাকে সুস্থ্য করার জন্য মানবিক কারণে মাথা মুখে চোখে পানি ছিটিয়ে সচেতন করি। সে বাক প্রতিবন্দি হওয়ায় পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি। আমি সেবা যত্ন দিয়ে তাকে সুস্থ করার চেষ্টা করি। কিন্তু বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় তাকে ২ আগস্ট ২৫০ শয্যার যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনার বিষয় অবগত হয়ে অজ্ঞাত নারি অজ্ঞাত ব্যক্তি কর্তৃক শারিরীক নির্যাতন হতে পারে বিধায় তার ধর্ষণ সংক্রান্ত ও বয়স নির্ধারণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেন। হাসাপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষায় ধরা পড়ে অজ্হাত নারি ধর্ষনের শিকার হয়েছে। ১ আগস্ট রাত ৯ টা থেকে রাত ১১ টা ২৮ মিনিটের মধ্যে যে কোন সময় অজ্ঞাত আসামিরা বাক প্রতিবন্দি যুবতিকে ধর্ষন করে। হাসপাতাল থেকে সুস্থ্য হওয়ার পর আত্নীয় স্বজনের ঠিকানা না পাওয়ায় অজ্ঞাত বাক প্রতিবন্দি যুবতিকে ঢাকা আহসানিয়া মিশনে প্রেরণ করা হয।


শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট