আত্রাইয়ে আ’লীগে নতুন মেরুকরণ,হেলালের কাছে নেতাদের ভীড়

আত্রাইয়ে আ’লীগে নতুন মেরুকরণ,হেলালের কাছে নেতাদের ভীড়





মোঃ ফিরোজ হোসাইন 

রাজশাহী ব্যুরো


নওগাঁর আত্রাইয়ে আ’লীগের রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণ শুরু হয়েছে। হেলালের কাছে আ"লীগ নেতাদের ভীড় 

 দীর্ঘ সময় জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের নওগাঁ-৬ আসনে উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করলে পাল্টে যেতে শুরু করে রাজনীতির হিসাব-নিকাস। শুরু হয় মিস্টি বিতরণ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন, ফেসবুকে নিজস্ব প্রোফাইলের ছবি পরিবর্তন, ঘরের আলো নিভিয়ে শোক পালন ও মানববন্ধন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়,নওগাঁ-৬(আত্রাই-রাণীনগর) আসনে উপনির্বাচনে আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক কর্তৃক দলীয় প্রার্থী রাণীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন হেলালের নাম ঘোষনার এক ঘন্টার মধ্যে আত্রাই উপজেলা আ’লীগ অফিসে মিস্টি বিতরন করা হয়। মুহুর্তের মধ্যে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দনের ঝড় ওঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এসময় বিগত এমপির সময়ে সুবিধা বঞ্চিত বা অভিমানে দুরে থাকা নেতাকর্মীরা ফেসবুক ট্যাটাসে তাদের নিজস্ব মতামত প্রকাশ করেন। জানান দিয়ে তারা বলেন অশুভ রাজনীতির মৃত্যু ঘটিয়ে প্রকৃত রাজনীতির ঘড়ে রাজনীতি ফিরার পথ সুগম করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান। আবার কেহ কেহ বিজয় চিহ্ন ভি দেখিয়ে ছবি আপলোড করে ফেসবুকে ছেড়ে আনন্দ উল্লাস করেন। অপরদিকে দীর্ঘ ১২ বছর সুবিধায় থাকা নেতা-কর্মীরা কেহ কেহ তাদের নিজস্ব ফেসবুক প্রোফাইলে রাখা প্রয়াত এমপির ছবি সরিয়ে ফেলে। কেউ কেউ এমপির সাথে ছবি তুলে নিজে উঁচু দরের নেতা মনে করত তারাই ভোল পাল্টে ফেলেছে। জানাচ্ছে শুভেচ্ছা।       

আবার কেহ কেহ অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও ঘোষিত প্রার্থীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে লোকালয়ের আঁড়ালে চলে যান। একেবারে মেনে নিতে না পারা কিছু নেতা-কর্মী ঘরের আলো নিভিয়ে শোক পালনের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে গত ৮ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার মনোনয়ন প্রত্যাশি নওগাঁ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক সুমনের নেতৃত্বে আর কোন দাবি নাই ওমর ফারুক সুমনের নৌকা চাই দাবিতে আহসানগঞ্জ স্টেশন এলাকায় আত্রাই-রাণীনগর এর শান্তিকামী জনগনের ব্যানারে মানববন্ধন করা হয়।

কথা হয় পাঁচুপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক ছামছুল প্রামানিকের সাথে। তিনি জানান, আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও শান্তির রাজনীতি করি। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) যাকে নৌকা মার্কা দিয়েছেন তার পক্ষে কাজ করে বিজয়ের মালা পড়িয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত শক্তিশালি করবো।

রানা প্লাজা ট্রাজেডিঃ ব্র‍্যাক এনজিও কর্তৃক ছেলে হারা পিতা পেলো আর্থিক সহায়তা

 রানা প্লাজা ট্রাজেডিঃ ব্র‍্যাক এনজিও কর্তৃক ছেলে হারা পিতা পেলো আর্থিক সহায়তা




আলমগীর হোসাইন, কুমিল্লা উত্তর জেলা, বাংগরা বাজার থানা প্রতিনিধি 


২০১৩ সালে ঘটে যাওয়া রানা প্লাজা ধ্বংসের সাত বছর পর আর্থিক সহায়তা পেলো মৃত মাহবুবুর রহমানের পিতা আব্দুল মজিদ। মৃত্যুকালীন সময় মৃত মাহবুবুর রহমান ব্র‍্যাক অফিস কর্তৃক ১ লক্ষ টাকা অনুদান প্রাপ্ত হন। ৫ বছর মেয়াদি এই অনুদানের সেবাসহ সহ মোট ১ লক্ষ দশ হাজার টাকা পান।


আজ ০৮/০৯/২০২০ইং, মঙ্গলবার আনুমানিক বেলা ১২ টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিষেক দাসের উপস্থিতিতে চেক হস্তান্তর করা হয়।


ঘটানাটি ঘটার পর থেকে আব্দুল মজিদের সাথে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম মোবাইল ফোনটি হারিয়ে ফেল্লে পরবর্তীতে আর কোনো  খোঁজ মেলে নি। গত ২৯/০৬/২০২০ ইং তারিখে দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ অনলাইন সংবাদপত্রের নিউজের মাধ্যমে খোঁজ পাওয়া যায় আব্দুল মজিদের।


ব্র‍্যাক কর্মকর্তা জনাব মৃত্যঞ্জয় সরকার (সাভার) এর নেতৃত্বে নিখোঁজ আব্দুল মজিদের তালাশ করে উক্ত পত্রিকার রিপোর্টার আলমগীর হোসাইন।


চেকটি হস্তান্তর করা হয় মুরাদনগর উপজেলার, ত্রিশ গ্রামের ব্র‍্যাক অফিস থেকে। সে সময় উপস্থিত ছিলেন মামুনুর রশীদ (আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক, প্রগতি), রতন কুমার পাল (উপজেলা হিসাব ব্যবস্থাপক), মোঃ ফরিজুল ইসলাম (এলাকা ব্যবস্থাপক, প্রগতি) সহ আরো অনেকে।


এই আর্থিক সহায়তা পেয়ে আব্দুল মজিদ আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পরলে তাকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সান্তনা দিয়ে তার উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করেন।

কুমিল্লার মুরাদনগরের রামচন্দ্রপুর বাজারের প্রবীণ ডাঃ মো. হাবিবুর রহমান,এমবিবিএস আর নেই

কুমিল্লার মুরাদনগরের রামচন্দ্রপুর বাজারের প্রবীণ ডাঃ মো. হাবিবুর রহমান,এমবিবিএস আর নেই



শাহ আলম জাহাঙ্গীর

ব্যুরো চিফ, কুমিল্লা


দীর্ঘ  ৫০ বছর চিকিৎসা সেবা দিয়ে আজ বুধবার ৮ সেপ্টেম্বর দুপুর ১.৫৫ মিনিটে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার রামচন্দ্রপুর বাজারের আল শামস্ ফার্মেসির মালিক স্বনামধন্য  প্রবীণ চিকিৎসক ডাঃ মো. হাবিবুর রহমান, এমবিবিএস। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মৃত্যুকালে মরহুম ডাক্তারের বয়স হয়েছিলো (৭৫)। তিনি  ওষুধ ব্যবসায়ী একমাত্র পুত্র ও নাতিসহ অসংখ্য অাত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান।

জানা যায়, তিনি সরকারি চাকরি ছেড়ে

এলাকার মানুষের সেবার মানসে মহান এ চিকিৎসা পেশাকে ব্রত হিসেবে নিয়েছেন।

পায়ে হেঁটে কখনোবা সাইকেলে চড়ে

মুরাদনগর,  হোমনা  বাঞ্ছারাম ও নবীনগরের  প্রত্যন্ত অঞ্চলে 

রোগীদের সেবা করে গেছেন।

মরহুম ডাক্তারের প্রথম জানাজা নামাজ

রামচন্দ্রপুরে বাজারপাড়া জামে মসজিদ

সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠে বাদ আসর অনুষ্ঠিত হয়। 

 মরহুমের ডাক্তারের গ্রামের বাড়ি মুরাদনগর উপজেলার পীরকাশিমপুরে দ্বিতীয় জানাজা শেষে গ্রামের কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়।

ডাঃ মো. হাবিবুর রহমানের মৃত্যুতে  এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

কুমিল্লার রামচন্দ্রপুর উত্তর বাজারে আলহাজ্ব ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন(এফসিএ) ফাউন্ডেশনের শুভ উদ্বোধন

 কুমিল্লার রামচন্দ্রপুর উত্তর বাজারে  আলহাজ্ব ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন(এফসিএ) ফাউন্ডেশনের শুভ উদ্বোধন




শাহ আলম জাহাঙ্গীর 

ব্যুরো চিফ, কুমিল্লা


আর্তমানবতার সেবা, শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, ও সামাজিক উন্নয়নের মহৎ অঙ্গীকার নিয়ে 

 মুরাদনগরের ঐতিহ্যবাহী রামচন্দ্রপুরেরর উত্তর  বাজারের আমিন নগর মোড়ে নতুন  কার্যালয়ে আলহাজ্ব ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন   (এফসিএ) ফাউন্ডেশনের শুভ উদ্বোধনের মাধ্যমে নবসংগঠনের নবযাত্রা শুরু হয়েছে।

গত ৫ সেপ্টেম্বর শনিবার দুপুরে ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির  সভাপতি  মোঃ আবু হানিফ মেম্বারের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন   স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন( এফসিএ)।  উদ্বোধক ছিলেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের 

সভাপতি ম. রুহুল আমিন, বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান  আলহাজ্ব হারুন আল রশিদ,   সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম,

কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ  ইসমাইল  হোসেন,  চেয়ারম্যান কামালউদ্দিন জেলাপরিষদ সসদস্য বাবু বিশ্বজিতসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

মোঃ আবু হানিফ মেম্বার কে ফাউন্ডেশনের সভাপতি ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন কে সাধারণ সম্পাদক করে  উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে  ৫১ সদস্য  বিশিষ্ট কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত করা হয়

সমাজ সেবায় বিশেষ অবদান রাখায় ইসরাত জাহান মাদার তেরেসা অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত

 সমাজ সেবায় বিশেষ অবদান রাখায় ইসরাত জাহান মাদার তেরেসা অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত



মোহাঃ ফরহাদ হোসেন কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ইউনাইটেড মুভমেন্ট ফর হিউম্যান রাইটস  - কর্তৃক মাদার তেরেসা নোভেল পিস এওয়ার্ড সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন K2K Wears International এর সত্ত্বাধিকারী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব ইসরাত জাহান।

বর্তমান কোভিড ১৯ পরিস্থিতি ও সুন্দরবন তীরবর্তী এলাকার জনপদের পিছিয়ে পড়া মানুষদের কল্যাণে দীর্ঘদিন ধরে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন।

ইসরাত জাহান বিশ্বব্যাপী চলমান দূর্যোগ করোনা ভাইরাসে ঘরবন্দী অসংখ্য পরিবারে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী সহায়তা প্রদান করে আসছেন।

সুন্দরবন তীরবর্তী উপকূল এলাকার বাঘ বিধবাদের কল্যাণে গৃহীত নানা পদক্ষেপে সবসময় পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছেন তিনি। উপকূলে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ- তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী আদিবাসী মুন্ডা সম্প্রদায়ের শিশুদের শিক্ষা সহায়তা কার্যক্রমে তাঁর বিশেষ অবদান রয়েছে।

বর্তমানে উপকূল এলাকায় সুপার সাইক্লোন আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ পানিবন্দী শতাধিক পরিবার ইসরাত জাহানের মাধ্যমে খাদ্য সামগ্রী সহায়তা পেয়েছেন।

এছাড়াও পানিবন্দী পরিবারগুলোর কিশোরীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি অধিক গুরুত্ব দিয়ে “উপকূল কিশোরী স্বাস্থ্য সুরক্ষা ক্যাম্পেইন ও স্যানিটারি ন্যাপকিন বিতরণ ” চলমান কর্মসূচীতে বড় পরিসরে পৃষ্ঠপোষকতা করছেন এই মহিয়সী নারী।

উপকূল এলাকার তরুণ সমাজসেবক  ও আইসিডির প্রতিষ্ঠতা  আশিকুজ্জামান (আশিক)বলেন, ইসরাত জাহানের অসামান্য অবদান উপকূলবাসী কৃতজ্ঞতার সাথে আজীবন স্মরণ করবে। তাঁর এই সম্মাননা লাভে আমরা উচ্ছ্বসিত। আমরা তাঁর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি।

ঝিকরগাছায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য-এর জন্মদিন উদযাপন

ঝিকরগাছায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের  সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য-এর জন্মদিন উদযাপন




মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা প্রতিনিধিঃবাংলাদেশ ছাত্রলীগের বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য-এর শুভ জন্মদিন উপলক্ষ্যে ঝিকরগাছা উপজেলায় ছাত্রলীগের উদ্যোগে কেক কেটে জন্মদিন উৎযাপন করা হয়।


ঝিকরগাছা উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগের উদ্যোগ্যে ঝিকরগাছা উপজেলায় কেক কেটে জন্মদিন উৎযাপন করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক ও ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের  ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম রেজা।

উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌফিক আলম কৌশিক,উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আরিফ রহমান, ছাত্রলীগ নেতা ইকরামুল করিম সৈকত, নাইমুর রহমান, হাসিবুর রহমান, হান্নান হোসেন, আরাফাত হোসেন শান্ত, সিহাব উদ্দিন রাজ, জাহিদ হাসান, রবিন হোসেন, নাসির হোসেন, মাসুদ রানা, মেরাজ হোসেন মিঠু, রানা, নাভারন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক শুভ, যুগ্ন আহবায়ক হেদায়েত, রনি, ছাত্রনেতা জাহিদ হাসান সহ উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক'র সাথে শম্ভুজিত মন্ডলের সৌজন্য সাক্ষাৎ ও ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময়

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক'র সাথে শম্ভুজিত মন্ডলের সৌজন্য সাক্ষাৎ ও ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময়


আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা  প্রতিনিধিঃ    : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক'র সাথে আশাশুনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাতক্ষীরা-০৩ আসনের জাতীয় সাংসদ সদস্য অধ্যাপক ডাঃ আফম রুহুল হক এমপি' একান্ত প্রতিনিধি শম্ভুজিত মন্ডল সৌজন্য সাক্ষাৎ ও ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।


সৌজন্য সাক্ষাতকালে শম্ভুজিত মন্ডল করোনা কালিন সময় ও আম্পান পরবর্তী সময়ে আশাশুনি উপজেলা তথা সাতক্ষীরা জেলার মানুষের বর্তমান দূরাবস্থার কথা তুলে ধরেন।


এসময় উপস্থিত ছিলেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন এর দপ্তর সম্পাদক অধ্যাপক ডাঃ মোহাঃ শেখ শহীদুল্লাহ, আশাশুনি উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তোষিকে কাইফু, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মাহাদী সেকেন্দার প্রমুখ।

জাতীয় পরিচয় পত্র জালিয়াতি চক্রের হোতা কুষ্টিয়ার যুবলীগ নেতা সুজন গ্রেফতার

 জাতীয় পরিচয় পত্র জালিয়াতি চক্রের হোতা কুষ্টিয়ার যুবলীগ নেতা সুজন গ্রেফতার


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা বুরো প্রধানঃ কুষ্টিয়ায় আলোচিত এনআইডি জালিয়াতি চক্রের অন্যতম হোতা কুষ্টিয়া শহর যুবলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির আহ্বায়ক আশরাফুজ্জামান সুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন বুধবার দুপুরে তাকে কুষ্টিয়া শহরের লাহিনীপাড়া এলাকায় তার শুশুর বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল।

কুষ্টিয়া শহরের এনএসরোড এলাকার এমএম ওয়াদুদ নামে এক ব্যক্তির শত কোটি টাকার সম্পত্তি এনআইডি জালিয়াতির মাধ্যমে দখল করে নেওয়ার পায়তারা করে একটি চক্র। এ সংক্রান্ত একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রচার হয় বিভিন্ন গনমাধ্যমে। সংবাদ প্রচারের পরই ভুক্তভোগী ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে কুষ্টিযা মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর পুলিশ প্রতারক চক্রের সন্ধানে মাঠে নামে। এর আগে ৫ জনকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ।  যুবলীগ নেতা আশরাফুজ্জামান সুজনসহ এখন পর্যন্ত ৬জনকে আটক করেছে পুলিশ।


কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আতিকুর রহমান আতিক জানান, বুধবার দুপুরে আশরাফুজ্জামান সুজনকে কুষ্টিয়া শহরের লাহিনীপাড়া এলাকায় তার শুশুর বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। আরো তথ্যঅনুসন্ধানে সুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে কাছে রিমান্ড চাওয়া হবে। তবে এঘটনায় আরো কেউ জড়িত রয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 


কুষ্টিয়া শহরের এন এস রোডের বাসিন্দা এম এম ওয়াদুদ নামে এক ব্যক্তির পরিবারের ৬ সদস্যের জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে প্রায় ১০০ কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে একটি চক্র।

সরোজগঞ্জে যুবকের হাতে আলমসাধু চালক নিহত

 সরোজগঞ্জে যুবকের হাতে আলমসাধু চালক নিহত

  







খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, খুলনা ব্যুরো প্রধানঃচুয়াডাঙ্গার সরোজগঞ্জে যুবকের হাতে আলমসাধু চালক নিহত হয়েছে।আজ বুধবার  সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা  জেলার সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ ভান্ডারদহ গ্রামের মঈন উদ্দীনের ছেলে আলমসাধু চালক তরিকুল ইসলাম নিহত হয়েছে। জানা গেছে, সরোজ গঞ্জ বাজারে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহা ষ্টোরের কর্মচারী পুরাতন যাদবপুর গ্রামের বদর উদ্দিনের ছেলে রিফাত উদ্দীন ধান-গম চেক করা ড্রেগার (বোমা) দিয়ে আলমসাধু চালককের পেটের ভিতর ঢুকিয়ে দেয়। এতে মারাত্মক জখম অবস্থায় স্হানীয় জনগণ তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কতব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু  হয়েছে।  এ ব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ  আবু জিহাদ ঘটনার  সত্যতা নিশ্চিত  করেছেন।

আশাশুনিতে সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারীদের মানববন্ধন

 আশাশুনিতে সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারীদের মানববন্ধন




আহসান উল্লাহ বাবলু,  উপজেলা  প্রতিনিধি : ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানম্, গণপূর্ত প্রকৌশলী দেলোওয়ার হোসেনসহ ডাক্তার,প্রকৌশলী, শিক্ষক ও সকল সরকারি, কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপর হত্যার উদ্দেশ্যে হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সকল দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আশাশুনিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 


বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকালে আশাশুনি উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে উপজেলায় কর্মরত সকল সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) শাহিন সুলতানা, আশাশুনি সরকারি কলেজের অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান, প্রকৌশলী আখতারুজ্জামান, কৃষি কর্মকর্তা রাজিবুল হাসান, শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাইদুল ইসলাম, যুবউন্নয়ন কর্মকর্তা এসএম আজিজুল ইসলাম প্রমুখ। 


মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সারাদেশে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীর উপর হত্যার উদ্দেশ্যে বর্বরোচিত হামলার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে দেশের উন্নয়নে কর্মস্থলে নির্বিঘ্নে নিরাপদে রাষ্ট্রের সেবা করে যাওয়ার পরিবেশ সৃষ্টির জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

আশাশুনিতে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

 আশাশুনিতে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ





আহসান উল্লাহ বাবলু, উপজেলা  প্রতিনিধি    : 


আশাশুনিতে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্ব পালনকালে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে নানাবিধ অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাতসহ ক্ষমতার অপব্যবহার করে শিক্ষকদেরকে হয়রানি এবং নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।


তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে, উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম ভারপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেন ২সেপ্টম্বর-১৯ থেকে ৮ ডিসেম্বর-১৯ পর্যন্ত। ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসারের দায়িত্ব পালনকালে ২০১৯-২০ অর্থ বছরে প্রতিবন্ধীদের জন্য ডিভাইস ক্রয় বাবদ প্রায় ৯৫ হাজার টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়। বরাদ্ধকৃত ৯৫ হাজার টাকা থেকে উপজেলার ৬৮নং শ্রীউলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১টি হুইল চেয়ার যার আনুমানিক মূল্য ১০হাজার ও ২টি চসমা আনুমানিক মূল্য ১৫০০ টাকা, মোট সাড়ে ১১হাজার টাকা খরজ করে উদ্বৃত্ত প্রায় ৮৩ হাজার টাকা তিনি আত্মসাৎ করেন।


দায়িত্ব পালনকালে ডিজিটাল হাজিরা মিটার ক্রয়ে একটি বৃহৎ অঙ্কের অর্থ আত্মসাৎ করায় উপজেলার অধিকাংশ ডিজিটাল হাজিরা মিটার প্রায়ই বিকল হয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। ডিজিটাল হাজিরা মিটার নষ্ট হয়ে পড়ে থাকায় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রধান শিক্ষক প্রতিবেদককে জানান, গত ২৩ অক্টোবর-১৯ স্মারক ৩.০০.০০০০.০১০.০২০.০১৯.২০১৮.১৬৫ পত্রাদেশ মোতাবেক স্ব স্ব বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে একটি করে বায়োমেট্রিক হাজিরা ক্রয়ের কথা বলা হয়। এর পরপরই ১৪


নভেম্বর-১৯ এ সংক্রান্ত উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের সমন্বয় মিটিং এ তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল ইসলামের স্বাক্ষরিত এজেন্ডা সমূহে সচিবালয় থেকে পাঠানো পত্রাদেশটি মিটিং এর এজেন্ডা সমূহে অন্তর্ভুক্ত না করে বায়োমেট্রিক হাজিরা ক্রয়ের আদেশটি গোপন রাখা হয়। পরবর্তীতে নিম্নমানের চায়না কোম্পানি থেকে সস্তায় বায়োমেট্রিক হাজিরা নিয়ে প্রত্যেক স্কুলে সরবরাহ করা হয়। উপজেলার ১৬৭ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ থেকে সাড়ে ১৬ হাজার টাকা করে নেয়া হয়। বায়োমেট্রিক হাজিরা ক্রয়ে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকার বেশি আত্মসাৎ করেছেন বলে ধারণা তাদের।


দায়িত্ব পালনকালে বাইনতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক রাহাতজান তার মুঠোফোনে ২ দিনের সি এল এর আবেদনের ছুটি মঞ্জুর না করে সি এল থাকার সত্বেও বিনা নোটিশে বিদ্বেষ প্রসূত ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসের ২ দিনের বেতন কর্তন করেন। বেতন কর্তন করার পরেও সার্ভিস বুকে সেটি দেখানো হয়নি।


শিক্ষকদের সাথে রুঢ় ও অমানবিক আচরণের কারণে উপজেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় মিটিং এ ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা শাকিল কর্তৃক আনীত প্রস্তাবে তাকে তৎক্ষনাত বড়দল ক্লাস্টারে বদলি করা হয়।


ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব পালনের পূর্বে ২০১৯ সালে শিক্ষার্থীদের সিলিবাস নিজ দায়িত্বে তৈরী করে উপজেলার ২৫ হাজার শিক্ষার্থী থেকে প্রায় ১,৫০০০০ টাকা আত্মসাত করার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব পালন কালে তিনি একই মাসে তিনটি পরিক্ষার ব্যবস্থা করে শিক্ষার্থীদের থেকে প্রশ্ন ফি বাবদ অতিরিক্ত প্রায় ৬০ হাজার টাকা আত্মসাত করেছেন বলেও জানান একাধিক সূত্র।


এর আগে তিনি সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলায় দায়িত্ব পালনকালে দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ ও অভ্যাসগত আচরণের কারণে সাতক্ষীরা-০৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দার এমপি এমপি তার বিরুদ্ধে ১৬/১০৯৫ স্মারকে ডিও লেটার প্রদান করেন। উক্ত ডিও লেটার এর প্রেক্ষিতে তৎকালীন জেলা শিক্ষা অফিসার আনন্দ কিশোর সাহা (কুষ্টিয়া) ৫৮৬/৪ স্মারকে তদন্ত কাজ সম্পন্ন করেন। এছাড়া নড়াইল জেলা লোহাগড়া উপজেলায় ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসারের দায়িত্ব পালনকালে তারা অসৎ আচরণের কারণে তিনি বিভাগীয় মামলার স্বীকার হন।


উপজেলার বাইনতলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাহাতজানের সাথে সি এল থাকার সত্বেও ছুটি না দিয়ে দুই দিনের বেতন কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, বেতন কাটা নিয়ে একটি ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল কিন্তু পরবর্তীতে সমাধান হয়ে গেয়েছিলো। বায়োমেট্রিক হাজিরা ক্রয়ের ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক গন জানতেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে একাধিক প্রধান শিক্ষক বলেন, কিছু প্রধান শিক্ষকের থেকে জোরপূর্বক চুক্তিপত্রে সই করে নেয়া হয়েছে কিন্তু প্রায় ২০ জন শিক্ষক ওই চুক্তি পত্রে সই করেন নাই।


এ বিষয়ে কথা বললে সাবেক ভারপ্রাপ্ত আশাশুনি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বর্তমান সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম প্রতিবেদককে জানান, আমি দায়িত্বে থাকা কালিন প্রতিবন্ধীদের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থের হিসাবটা আমি আপনাকে পরে জানাতে পারবো। আমাদের ফাইল যার কাছে আছে উনি এখন অফিসের বাইরে। বায়োমেট্রিক হাজিরার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, স্ব স্ব স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কোম্পানির চুক্তি হয়েছিল। "কিন্তু অধিকাংশ প্রধান শিক্ষকের বক্তব্য এ বিষয়ে উনারা কিছু জানতেন না উনাদের কাছ থেকে শুধুমাত্র একটি করে চেক নেয়া হয়েছিলো" এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। তার বিরুদ্ধে আনীত বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে মাননীয় সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দার এমপি ডিও লেটার দিয়েছিল কিন্তু সেটির তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে এবং প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, কাজ করতে গেলে অভিযোগ আসবে তবে সেগুলোর প্রমান মিলছে কিনা সেটিও তো দেখতে হবে।


আশাশুনি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম জানান, আপনি যে বিষয় গুলো নিয়ে বলছেন ইতপূর্বে সেগুলো সম্পর্কে আমি কমবেশি শুনেছি। তবে রবিউল সাহেবের সঙ্গে অভিযোগ গুলোর বিষয়ে কথা হলে তারপরই আমি আপনাদেরকে বিস্তারিত জানাতে পারবো। এ ব্যাপারে আশাশুনির শিক্ষক ও সচেতন মহল উল্লেখিত ঘটনা তদন্তপূর্বক বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

ঘোড়াঘাট ইউএনও’কে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে স্থানীয়দের মানববন্ধন

ঘোড়াঘাট ইউএনও’কে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে স্থানীয়দের মানববন্ধন




মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধিঃদিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমকে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে এবং দোষীদের দৃষ্ঠান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে মানব্বন্ধন করেছে ঘোড়াঘাট উপজেলার সাধারণ মানুষেরা। 

বুধবার সকালে উপজেলার ডুগডুগী বাজারে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে ১নং পালশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবিরুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা চেয়ার‌্যান শুভ রহমান, বিশিষ্ট্য ব্যবসায়ী আলহাজ আব্দুল ওহাব মোল্লাসহ স্থানীয় বিপুল সংখ্যক নারী পুরুষ, শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্বরা অংশ গ্রহণ করেন।

 

এসময় বক্তারা দাবি করেন, উএনওর উপর হামলা নিছক  কোন চুরির ঘটনা নয়। তাকে হত্যার উদ্যেশ্যেই তার উপর এমন ন্যাক্কার জনক হামলা চালানো হয়েছে। অবিলম্বে দোষীদের খুঁজে বের করে  দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দিতে হবে।

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর পরিদর্শন করলেন বিভাগীয় কমিশনার

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর পরিদর্শন করলেন বিভাগীয় কমিশনার





মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর পরিদশর্ন, ব্যবসায়ীদের সাথে মতবিনিময় সহ মডেল মসজিদ পরিদর্শন, ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠির মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান এবং ভাতা  বই বিতরন করলেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল ওয়াহাব মিয়া ।

আজ বুধবার দুপুরে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল ওয়াহাব মিয়া হিলি স্থলবন্দর  পরিদর্শন করেন এবং স্থানীয় ব্যবসায়ী, কাস্টমর্স , পানামা কতৃপক্ষ, শ্রমিক ও জন প্রতিনিধিদের সাথে বন্দরের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন।

উপজেলা নিবার্হী অফিসার রাফিউল আলমে সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম, কাস্টমস উপ কমিশনার সাইদুল আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ, মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত, পানামা হিলি পোর্টের পরিচালক প্রিন্স চৌধুরী, সিএন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল আজিজ সহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও রংপুর বিভাগীয় কমিশনার হিলি স্থলবন্দর  পরিদর্শন শেষে হিলি মর্ডেল মসজিদের নিমান কাজ পরিদর্শন, উপজেলা পরিষদে পোনা মাছ অবমুক্ত করন, উপজেলা পরিষদে অনগ্রসর জনগোষ্টির জীবনমান উন্নয়নে এবং করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠির মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান এবং ভাতা  বই বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন।

কয়রায় জলবায়ু পরিষদের ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত

কয়রায় জলবায়ু পরিষদের ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত




মোহাঃ ফরহাদ হোসেন কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি 

খুলনার কয়রা উপজেলায় জলবায়ু পরিষদের 

কোভিড-১৯ রেসপন্স সমন্বিত পরিকল্পনা মিটিং অনুষ্ঠিত হয় আজ ৯/৯/২০ রোজ-বুধরার  বিকাল -৪ টায় জলবায়ু পরিষদের সাধারন সম্পাদক  অদ্রীস আদিত্য মন্ডলের সভাপতিত্ব মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে আলোচনা করা  হয় কয়রার প্রশাসন, এনজিও, সামাজিক সংগঠন নিয়ে সমন্বিত ভাবে কোভিট-19  রেসপন্স এর সচেতনতা, চিকিৎসা সেবা, নারী-শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ এই সকল কাজের কাজের পরিকল্পনা করা হয়।জলবায়ু পরিষদের উদ্যোগে মাস্ক ও সচেতনতা মুলক লিফলেট বিতরন করা হবে।জলবায়ু পরিষদের মিটিং উপস্থিতি  জলবায়ু পরিষদ,  জলবায়ু পরিষদ সদস্যদের মধ্য ছিলেন প্রভাষক বিদেশ রঞ্জন মৃধা,রিয়াছাদ আলী,নুরুল আমিন নাহিদ,এ্যাড:আনিসুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবক রাসেল রানা,আয়েশা আক্তার,মনিরুজ্জামান,রহিমা খাতুন,সিএসআরএল ফিল্ড অফিসার নিরাপদ মুন্ডা প্রমুখ।

কোটচাঁদপুরে স্কুল শিক্ষকের মৃত্যু, এলাকায় শোকের ছায়া

কোটচাঁদপুরে  স্কুল শিক্ষকের মৃত্যু, এলাকায় শোকের ছায়া





খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার। 

খুলনা ব্যুরো প্রধান। 



ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার অসাধারণ প্রতিভাবান শিক্ষাগুরু সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আব্দুর রউফ মোল্লা  আকস্মিক ভাবে মৃত্যু বরণ করেছেন। (৯ই সেপ্টেম্বর) বুধবার ভোররাত ৪.৪০ মিনিটের দিকে তার মেয়ের বাসায়  হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। (ইন্না লিল্লাহি….রজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২  বছর। তিনি স্ত্রী,১ কন্যা ১পুত্রসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।


পারিবরিক সূত্র জানায়, বুধবার ভোর ৪ টার দিকে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং তারকিছুক্ষন পড়েই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

আরও জানান তিনি দীর্ঘদিন ধরে টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন

তার মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বুধবার সকাল ৯ টায় তার লাশ পৌর  শহর সংলগ্ন ২ নং ওয়ার্ডে তার নিজ বাড়ীতে আনা হলে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষক,ছাত্র/ছাত্রীসহ সর্বস্তরের মানুষ তাকে শেষবারের মতো একনজর দেখার জন্য ছুটে আসেন। দুপুর ২ টায় প্রথম জানাযা নামায অনুষ্ঠিত হয় সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এবং দ্বিতীয় জানাযা বিকাল ৫ টায় মেইন বাসস্ট্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে পৌর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।


তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও শোর্কাত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে বিবৃতি প্রদান করেছেন কোটচাঁদপুর রিপোর্টাস ইউনিটির সাংবাদিকবৃন্দ। আরও শোক প্রকাশ করেন উপজেলা আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাজান আলী, পৌর আঃলীগের যুগ্ম আহবায়ক সহিদুজ্জামান সেলিম প্রমুখ।

মাধবপুরে মাইকে ঘোষণা দিয়ে মিটিং করে একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত

 মাধবপুরে মাইকে ঘোষণা দিয়ে মিটিং করে একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত



লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি


হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার আদাঐর ইউনিয়নের সম্ভদপুর গ্রামে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে মিটিং করে আবিদ মিয়ার পরিবারের ৩২ সদস্যকে সমাজচ্যুত করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে দেশের মানুষ যখন আতস্কিত ঠিক সেই মুহূর্তে, মিটিং এ তাদের একঘরে করার ঘোষণা দিয়ে গ্রামের কাউকে ওই পরিবারের সঙ্গে না মেশার সীদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে কেউ। ওই পরিবারের লোকজনের সঙ্গে মিশলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানানো হয়েছে (৫-সেপ্টেম্বর) এ ঘোষণা দেওয়া হয়। সমাজচ্যুত করে দেওয়ার বিষয়ে সমাজচ্যুত ব্যক্তি ঐ গ্রামের এনু মিয়ার পুত্র আবিদ মিয়া বাদী হয়ে সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। 


অভিযোগপত্র সূত্রে জানা যায় সম্ভদপুর গ্রামের মাতব্বর আব্দুল আলী উরুফে কাইল্লা, এমবাদ উল্লাহ স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হাবিবুল্লা মাষ্টার মঙ্গল আলী শফিক মিয়ার নেতৃত্বে সম্ভদপুর গ্রামের হাবিবুল্লাহ মাষ্টার এর বাড়িতে গত ৫ সেপ্টেম্বর রাতে মিটিং থেকে সমাজচ্যুত করার সীদ্ধান্ত হয়। গত ০৪ সেপ্টেম্বর অভিযোগকারী আবিদ মিয়ার মেয়ের বিবাহ ছিল, বিবাহের আগের দিন আবিদ মিয়ার নিকট আব্দুল আলী উরুফে কাইল্লা ও তার সহযোগীরা  দশ হাজার টাকা চাদাঁ দাবী করে।


আবিদ মিয়া টাকা দিতে অনিহা প্রকাশ করলে বিয়ের দিন মসজিদের ইমামসহ বরযাত্রীদেরকে বিয়ে বাড়িতে আসতে বাঁধা প্রদান করে এমনকি, মসজিদের মাইক দিয়ে ঘোষনা করে দেয় আবিদ মিয়ার পরিবারের লোকজন সমাজের বাহিরে, তাদের বাড়িতে কেউ যেন বিয়ে এবং অন্যান্য কাজে না যায়। তাদের বাঁধার কারনে বিয়ের দিন আবিদ মিয়া ও বরযাত্রীদের  মান-সম্মানসহ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। বর্তমানে আবিদ মিয়ার পরিবারের লোকজনকে হাঁটে ঘাটে মাঠে কোথায় চলাফেরা করতে দিতেছে না এবং প্রকাশ্যে হুমকী প্রদান করতেছে।


এছাড়া আবিদ মিয়া অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করেন এমন এক ঘরে করে রাখার অবস্থা চলতে থাকলে আবিদ মিয়া ও তার পরিবারের লোকজনদের আত্মহত্যা করা ছাড়া কোন উপায় নাই।

ঐ পরিবারের সদস্য আবিদ মিয়ার ভাই ফিরোজ মিয়া বলেন, আমরা জমিতে যেতে পারছিনা চাষ করতে পারছি না।  আমাদের কে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে, এই বিষয়ে জানতে চাইলে গ্রাম্য মাতব্বর আব্দুল আলী উরুফে কাইল্লা অভিযোগ স্বীকার স্বীকার করে।


বোকাচোদা মানে জানো বলেন এটা আমার একার সীদ্ধান্ত না গ্রামের কোন আইনকানুন মানে না এবং তারা গত দুই বছর যাবত মসজিদের ইমাম সাহেবের বেতন বা হাদিয়া দেয় না তাই গ্রাম বাসী হাবিবুল্লাহ স্যারের বাড়িতে মিটিং করে সীদ্ধান্ত হয়েছে তারা মসজিদের ইমামের বেতন দিলে আমরা আগের মতো স্বাভাবিক ভাবে জীবন যাপন করবো তাদের নিয়ে অভিযুক্ত গ্রাম্য মাতব্বর ও আদাঐর।


ইউনিয়নের তথ্যসেবা কেন্দ্রের উদ্যোক্তা শফিক মিয়া চাঁদা চাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়টি এড়িয়ে যান। এ বিষয়ে জানতে গ্রাম্য মাতব্বর স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হাবিবুল্লাহ মাষ্টারের সাথে ফোনে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। আদাঐর ইউ/পি চেয়ারম্যান ফারুক পাঠান বলেন এমন অভিযোগ আমি এখনও পায়নি তবে কাউকে সমাজচ্যুত করা এটা খুবই খারাপ কাজ আমি এ বিষয়ে খবর নিচ্ছি।


মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন বলেন, এ বিষয়টি আমার জানা নাই আমি এখনই খবর নিয়ে দেখছি। তবে এমন কেউ করে থাকলে এটা আইন পরিপন্থি কারণ দেশে সমাজচ্যুত করার আইন নাই। এই বিষয়ে মোবাইল ফোনে কথা হলে মাধবপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার তাসনূভা নাসতারান বলেন, এক ঘরে করে দেওয়ার বিষয়ে আমি একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি আমি খোঁজ খবর নিয়ে দ্রুতই ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।

মোংলা বন্দরে নৌযান মাষ্টার ও কনজারভেন্সী কর্মকতা আ: মান্নানের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ

মোংলা বন্দরে নৌযান মাষ্টার ও কনজারভেন্সী কর্মকতা আ: মান্নানের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ






মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা   


যথাযথ নিয়ম না মেনে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের কর্মচারী পদ মযার্দার এক নৌযান মাষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন কনজারভেন্সী পদের দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তা হিসেবেও। একই সাথে তিনি নৌযান চালকের (মাষ্টার) দায়িত্বে থেকে প্রতি মাসে অতিরিক্ত ডিউটি করার অজুহাত দেখিয়ে বন্দরের কোষাগার থেকে প্রায় অর্ধ লাখ টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছেন। সেই সাথে কনজারভেন্সী কর্মকর্তার পদ ব্যবহার করে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের কাছ থেকে নানান সুযোগ-সুবিধা নেয়াসহ বিভিন্ন অজুহাতে বন্দরের অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। তিনি হলেন আঃ মান্নান মল্লিক। মোংলা বন্দর কর্তৃপেক্ষর এম,ভি মালঞ্চ জাহাজের মাষ্টার (চালক) হিসেবে কর্মরত আছেন। ২০১৯ সালের মাঝামাঝি থেকে বন্দরের হারবার বিভাগের সুপারিশে দায়িত্ব পালন করছেন কনজারভেন্সী কর্মকর্তা হিসেবে।


মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের নৌযান এম,ভি মেঘদূতএর সুকানী মো: জামাল উদ্দিন জানান, কনজারভেন্সী কর্মকর্তার সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে আঃ মান্নান মল্লিক প্রতিনিয়ত সরকারী টাকা আত্বসাৎ করছেন। মাত্র কয়েকদিন আগে তিনি কয়েক ঘন্টা জাহাজ চালিয়ে দুই দফায় ১০৪ ব্যারেল ডিজেল আত্মসাৎ করেছেন। আঃ মান্নান প্রতি মাসে ৪৫ হাজার টাকা অতিরিক্ত ডিউটি দেখিয়ে উত্তোলন করে তা আত্মসাৎ করছেন। বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রশাসনিক আদেশ ছাড়াই শুধুমাত্র দপ্তর প্রধানের সুপারিশে কনজারভেন্সী কর্মকর্তার দায়িত্ব পেয়ে নদীতে স্যালভেজ কার্যক্রমের টাকা আত্মসাৎসহ নানা অনিয়ম চালিয়ে যাচ্ছেন আঃ মান্নান।  


অন্যদিকে বন্দরের নৌযান এম,এল পান্না জাহাজের আরেক কর্মচারী নাম প্রকাশ না করা শর্তে বলেন, আঃ মান্নানের অত্যাচারে তারা এখন অতিষ্ঠ। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে সুসম্পর্ক রেখে মান্নান কনজারভেন্সী কর্মকর্তার পদ ভাগিয়ে নিয়েছেন। আর তাদের (কর্মকতার্দের) সাথে মান্নানের সুসম্পর্কের কারণে আমাদের উপর অত্যাচারের বিষয়ে চাকুরী হারানোর ভয়ে মুখ খুলতে পারছিনা। 


তবে এতোসব অভিযোগের বিষয়ের আঃ মান্নান বলেন, তিনি যথাযথ নিয়ম মেনে সকল দায়িত্ব পালন করছেন। কোন অনিয়মের সাথে তিনি জড়িত নন।


মোংলা বন্দর কতৃপক্ষের  হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দীন বলেন, নিয়ম অনুযায়ী পদোন্নতি পাওয়ার যোগ্য ছিলেন প্রথম শ্রেণীর মাষ্টার আঃ মান্নান। কিন্তু তিনি পদোন্নতি নিতে রাজি হননি। তাই দপ্তর প্রধান হিসেবে আমি (হারবার মাষ্টার) আদেশ দিয়েছি অতিরিক্ত হিসেবে কনজারভেন্সীর দায়িত্ব পালন করার জন্য। অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের প্রসাশনিক কোন আদেশ রয়েছে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি (হারবার মাষ্টার) বলেন, কনজারভেন্সী দায়িত্ব পালনের কোন সুবিধা আঃ মান্নান পাবেন না, তাই কোন প্রশাসনিক আদেশ দেয়া হয়নি। #

রিজেন্ট সাহেদের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা আদালতে পৃথক দু’টি অভিযোগপত্র দাখিল

রিজেন্ট সাহেদের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা আদালতে পৃথক দু’টি অভিযোগপত্র দাখিল

আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃরিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান, সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে, অবৈধ অস্ত্র ও ভারতীয় রুপি রাখার দায়ে, দায়েরকৃত মামলায়, বুধবার (৯ সেপ্টম্বর) সাতক্ষীরা আদালতে পৃথক দু’টি অভিযোগপত্র  দাখিল করা হয়েছে।

আমলী আদালত-৬ এর বিচারক রাজীব রায়ের আদালতে দুপুরে এই অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরা ক্যাম্পের এসআই রেজাউল করিম।


সাতক্ষীরা আদালতের উপ-পরিদর্শক মোন্তাজউদ্দীন জানান, দেবহাটা থানায় সাহেদের বিরুদ্ধে অবৈধ অস্ত্র ও ভারতীয় রুপি রাখার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয়েছে। ১৮৭৮ সালের আর্মস এ্যাক্টস এর ১৯-এ এবং ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ এর বি (এ) ধারায়, শুধুমাত্র সাহেদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।


এর আগে ১৫ জুলাই বুধবার ভোরে সাতক্ষীরা জেলার, দেবহাটা উপজেলার  লাবন্যবতী নদীর উপর নির্মিত ব্রেইলী ব্রীজ এর নীচ থেকে সাহেদকে বোরখা পরিহিত অবস্থায় গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে একটি পিস্তল ও তিন রাউন্ড গুলি ও ২৩৩০ ভারতীয় রুপি উদ্ধার করা হয়। এরপর তাকে হেলিকপ্টারে করে ওই দিনই ঢাকায় নেয়া হয়। ওই দিন রাতে র‌্যাব-৬ এর ডিএডি নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৯৭৮ সালের আর্মস অ্যাক্টের ১৯-এ উপধারা এবং ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ এর বি/এ ধারায় দেবহাটা থানায় একটি মামলা(৫নং) করেন। মামলায় সাহেদ করিমসহ তিনজনকে আসামী করা হয়। পরে ওই মামলায় সাহেদকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়।

চৌগাছায় গ্যাস ট্যাবলেট প্রয়োগে ১৫০ বিঘা বিলের মাছ মেরে ফেলল দূর্বৃত্তরা

 চৌগাছায় গ্যাস ট্যাবলেট প্রয়োগে ১৫০ বিঘা বিলের মাছ মেরে ফেলল দূর্বৃত্তরা




চৌগাছা(যশোর)প্রতিনিধিঃচৌগাছায় জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত মৎসচাষী আবুল কাশেমের বাঘারদাড়ি গ্রামের প্রায় ১৫০ বিঘা বিলে গ্যাস ট্যাবলেট দিয়ে মাছ মেরে ফেলেছে দূর্বৃত্তরা, এতে  তার প্রায় ৪০ লক্ষ টাকার মাছ মারা গেছে। আবুল কাশেম বলেন আমি জাতীয় পুরষ্কার প্রাপ্ত একজন মাছ চাষী। আমরা এই বিল ছাড়াও প্রায় ১০০০ বিঘা জমিতে মাছ চাষ আছে। আমি আধুনিক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করি, এর আগে অন্য কোথাও মাছ মরার সমষ্যা হয় নি। আমি এক বছর এই বিলে মাছ বিক্রয় করিনি, আর এই বিলে প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে মাছ চাষ হয়, কৃত্রিম ভাবে খাদ্য দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। আমার খুব বড় একটা ক্ষতি হয়ে গেলো।

ঝিনাইদহে নিজ বাড়ি থেকে তৃতীয় লিঙ্গের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

 ঝিনাইদহে নিজ বাড়ি থেকে তৃতীয় লিঙ্গের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

সম্রাট হোসেন ,ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধিঃঝিনাইদহে নিজ বাড়ি থেকে তৃতীয় লিঙ্গের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার,হত্যা না আত্মহত্যা প্রশ্ন জনমন

 

ঝিনাইদহ শহরতীর উদয়পুর গ্রামে নিজ ঘর থেকে কারিশমা (৪০) নামে তৃতীয় লিঙ্গের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। কারিশমা সদর উপজেলার কাশিমপুর গ্রামের মৃত সুলতান আলীর সন্তান।

কারিশমার মৃত্যু নিয়ে এলাকায় রহস্যের ধূম্রজাল তৈরি হয়েছে। এটি হত্যা নাকী আত্মহত্যা তা নিয়ে জনমনে অনেক প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে।

স্থানীয়রা জানায়, উদয়পুর গ্রামের ওই বাড়িতে কারিশমা একাই থাকতো। সম্প্রতি অন্যত্র বাড়ি তৈরী করায় শহরের টার্মিনাল এলাকার এক ব্যক্তির কাছে তিনি বাড়িটি বিক্রি জন্য বায়না করেছেন। বুধবার দুপুরে ওই বাড়িতে ক্রেতারা গেলে তার নিজ ঘরে লাশ দেখতে পায়। পরে পুলিশ এসে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

নিহতের ভাই নুরুন্নবী বলেন, কারিশমার ঘরের ফ্যানের সাথে ফাঁস দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বিছানায় বসা অবস্থায় ফ্যানের সাথে ঝুলছে। তাকে হত্যার পর ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। টাকা ও গহনার কারণে কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত ছাড়া এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা বলা যাচ্ছে না।

মাধবপুরে পুলিশের অভিযানে ৫৪০ পিস ইয়াবাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক

মাধবপুরে পুলিশের অভিযানে ৫৪০ পিস ইয়াবাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক



লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃহবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় ধর্মঘর ইউনিয়নের কালিরবাজার নামক স্থানে মঙ্গলবার(৮ ই সেপ্টেম্বর) রাতে অভিযান চালিয়ে ২ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে মাধবপুর কাশিমনগর ফাঁড়ি পুলিশ। আটককৃতরা হল মাধবপুর উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের তারা বালির ছেলে মোঃবাবুল মিয়া(৪০)একি গ্রামের দুধ মিয়ার ছেলে মোঃ নাসির মিয়া(৪৫)।


কাসিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোরশেদ আলম এর নেতৃত্বে ওই দিন রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে ৫৪০ পিস ইয়াবাসহ তাদের আটক করা হয়। কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মোরশেদ আলম সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মাদকের বিরুদ্ধে আমার অভিযান চলমান থাকবে মাদক ব্যবসায়ী যেই হোক তাকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়া হবে না। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম চলছে।

নবীনগরের সড়কে অবৈধ বালু ব্যবসায়ীর কাছে জিম্মি সাধারন মানুষ ও চলাচলে বিঘ্ন

নবীনগরের সড়কে অবৈধ বালু ব্যবসায়ীর কাছে জিম্মি সাধারন মানুষ ও চলাচলে বিঘ্ন

 



এস.এম অলিউল্লাহ  ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধিঃ


ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর পৌর এলাকার ২নং ওয়ার্ডের আলমনগর  দক্ষিন সড়কের  সরকারি রাস্তা দখল করে ড্রেজার ও নিষিদ্ধ টাক্টর দিয়ে বালি কেনা-বেচা করছে এলাকার তাজুল ইসলাম নামে এক প্রভাবশালী। 


সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পৌর এলাকার ২নং ওয়ার্ডের আলমনগর  দক্ষিন সড়কের  সরকারি রাস্তা দখল করে ড্রেজার ও নিষিদ্ধ টাক্টর দিয়ে বালি কেনা-বেচা করার 

কারনে  সড়কটিতে সাধারন মানুষ চলাচল করতে গিয়ে প্রতিদিনই দুর্ঘটনা শিকার হচ্ছে।

গতকাল একটি ব্যাটারি চালিত অটো চাকা রাস্তায় থাকা বালিতে ডেবে  যাত্রী সহ উল্টে পরে যায়,এ সময় অটোতে থাকা যাত্রীরা গুরুত্বর আহত হয়।  পরে তাদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়। 


স্থানীয়রা জানান,  এই বালুর ব্যবসার কারনে এলাকার সব রাস্তা -ঘাট ভেঙ্গে গেছে। আমাদের চলাফেরা করতেও অনেক কষ্ট হয়। এ বিষয়ে কেউ কিছু বলতে গেলে তার রোশানলে পরতে হয়।


স্থানীয় আওয়ামিলীগ নেতা কাউছার আলম শিবু জানান,  এই বালু ব্যবসায়ী তাজু ও 

বড় বড় ৯টি ট্রাক্টর এলাকার সব রাস্তা ভেঙ্গে ফেলেছে।তার ভয়ে এলাকায় কেউ কিছু বলতে পারে না। আমি গত কিছুদিন আগে  তার বিরোদ্ধে সরকারি দুইটি গাছ কাটার লিখিত অভিযোগ  করেছি। কিন্তু তার প্রতিকার পাই নাই। আমি তার অবৈধ বালু ব্যবসা সহ এসব বিষয়ে প্রতিবাদ করায় ও সাংবাদিকের কাছে এবিষয়ে বক্তব্য দেওয়ায় সে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আমার উপর সন্ত্রাসী বাহিনি নিয়ে হামলা করেছে। আমি হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে তার বিরোদ্ধে নবীনগর থানায় অভিযোগ দিতে যাচ্ছি।


এ বিষয়ে প্রভাবশালী বালু ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম বলেন, আমি এখানে ব্যবসা করি,কারো ক্ষতি করিনা। পৌরসভার অনুমতি নিয়ে 

অনেক দিন যাবতই আমি এই ব্যবসা করে আসছি । 


এ বিষয়ে নবীনগর পৌরসভার মেয়র এড শিব শংকর দাস বলেন, বালু ব্যবসার অনুমোদন পৌরসভা দেয় না। তিনি যা করছেন তা পৌর সভার আইন বহির্ভূত। 


এ বিষয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. ইকবাল হাসান বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে লোক পাঠাচ্ছি।তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঝিনাইদহে ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক

 ঝিনাইদহে  ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক







সম্রাট হোসেন ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধিঃঝিনাইদহের ছোটকামারকুন্ডু গ্রাম থেকে 

জসিম ও আশিকুজ্জামান নামে দু"জনকে

গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ 

।৮ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার 

ঝিনাইদহ জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি মোঃ আনোয়ার হোসেন জানান  পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান পিপিএম এর সার্বিকতত্তাবধান গোপন সূত্রে ফেন্সিডিল পাচারের খবর পেয়ে ডিবি পুলিশের একটি চৌকস দল কে অভিযানে পাঠান । ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঝিনাইদহ পৌরসভার ঝিনাইদহ-কালীগঞ্জ সড়কের ছোটকামারকুন্ডু গ্রামের জনৈক মোঃ মিজানুর রহমান বাদশা মিয়ার বাড়ির সামনে থেকে ১। মোঃ জসিম (৩৬), পিতা- মতলেব মহুরী, সাং-উদয়পুর, ২। মোঃ আশিকুজ্জামান (২২), পিতা- আবু হাসেম, সাং- দুঃখী মাহমুদ সড়ক আরাপপুর, উভয় থানা ও জেলা- ঝিনাইদহকে গ্রেফতার করে। সেসময় পুলিশ তাদের কাছ থেকে ৯৬ (ছিয়ানব্বই) বোতল ফেন্সিডিল ও ১ (এক) টি লাল সাদা রঙ্গের FZS মোটরসাইকেল উদ্ধার করে।

নগরকান্দা উপজেলা বাজারে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

নগরকান্দা উপজেলা বাজারে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ড





ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ আজ ৯/৯/২০২০ বুধবার,সকাল ৮ ঘটিকায়, ফরিদপুর জেলার, নগরকান্দা উপজেলা বাজারে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে প্রায় দশটি দোকান সম্পন্ন পুড়ে যায়। দোকানগুলোর মধ্যে ফার্নিসার, লেপ তোশকের ও মেডিসিনের দোকান রয়েছে। ১ ঘন্টা পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।আল্লাহ আমাদের এমন বিপদ থেকে রক্ষা করেন।

মানিকগঞ্জে দুই ইউপি চেয়ারম্যান ও এক সদস্যকে বহিষ্কার

 মানিকগঞ্জে দুই ইউপি চেয়ারম্যান ও এক সদস্যকে বহিষ্কার


স্টাফ রিপোর্টারঃ আর.জে মিজানুর রহমান ইমনঃ

অনিয়মের অভিযোগে মানিকগঞ্জে দুই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও এক ইউপি সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে


(৮ই সেপ্টেম্বর) মঙ্গলবার দুপুরে বিষয়টি মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক এস. এম ফেরদৌস নিশ্চিত করেছেন


বহিষ্কৃতরা হলেন, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার নবগ্রম ইউপি চেয়ারম্যান মো. রাকিব হোসেন ফরহাদ, হরিরামপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন ও একই ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. কামাল হোসেন


মানিকগঞ্জ স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক ফৌজিয়া খান জানান, ১% ও এলজিএসপি-৩ এর বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণে সরকারি বিধি অনুসরণ না করা, নিয়ম-বহির্ভূতভাবে কাজের জন্য অগ্রিম অর্থ উত্তোলন এবং ভূয়া বিল ভাউচার দাখিলসহ কাজ না করে প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রাকিব হোসেন ফরহাদকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে

এদিকে, গভীর নলকূপ বসানোর কথা বলে অর্থ আদায়ের অভিযোগে হরিরামপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: কামাল হোসেনকেও বহিস্কার করা হয়


অপরদিকে, দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ঘর প্রদানের নামে অর্থ আদায়ের অভিযোগে হরিরামপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য মো: কামাল হোসেনকেও সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে


ফৌজিয়া খান আরো জানান, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুলো স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে । জেলা প্রশাসক অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ অনুযায়ী ব্যবস্থা প্রহণের সুপারিশ করতে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব বরাবর পাঠান


পরে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরীর নিকটও অভিযোগ প্রমাণীত হলে গতকাল সোমবার (৭ই সেপ্টেম্বর) তার স্বাক্ষরিত পৃথক পৃথক বিজ্ঞপ্তিতে তিন জন প্রতিনিধিকে সাময়িক বহিস্কার করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন ।

সিরাজগঞ্জে ভুয়া চিকিৎসকের জেল ও জরিমানা

সিরাজগঞ্জে ভুয়া চিকিৎসকের জেল ও জরিমানা




মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধঃ

সিরাজগঞ্জ  শহরের নিউমার্কেটের ২য় তলায় অবস্থিত পাইলস কেয়ার সেন্টারে এক ভুয়া ডাক্তার দম্পতিকে দেড় বছরের জেল এবং ৩০ হাজার    টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিকলে জেলা প্রশাসনের সহকারী  কমিশনার ও   বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট  মো. মাসুদুর রহমান এর  নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত  হয় । অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেন জেলা সিভিল সার্জন অফিসের কর্মকর্তা ডা. সৌমিত্র বাসক, সিরাজগঞ্জ  এবং RAB-12 এর কোম্পানি কমান্ডার এ এস পি  মিরাজ এর নির্দেশে তার দল।

ভ্রাম্যমাণ  আদালত সূত্রে জানা যায়,মঙ্গলবার বিকেলে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সিরাজগঞ্জ  সদর উপজেলার  নিউমার্কেট এবং মোহাম্মদপুর এলাকায় পৃথক পৃথক অভিযান  পরিচালনা করা হয়। এসময় দীর্ঘদিন ধরে পাইলস, ভগন্দর সহ মলদ্বারের বিভিন্ন সমস্যার জন্য ভুয়া চিকিৎসা প্রদানের দায়ে মোঃ মিল্টন তালুকদার (৪৫) কে দেড় বছরের জেল এবং  স্ত্রী মোছাঃ পারভিন খাতুন (৪০) কে পৃথক দুটি মামলায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন আইন এর ৫৩ ধারায় ৩০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। 

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট  মো. মাসুদুর রহমান  জানান যে, জনগনের অধিকার ও স্বাস্থ্য রক্ষায় জেলা প্রশাসনের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ব্রাক্ষনবাড়িয়ার গবেষক সাংবাদিক মুসা স্যারের মৃত্যু বার্ষিকী পালন করেছে ব্রাক্ষনবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাব

 ব্রাক্ষনবাড়িয়ার গবেষক সাংবাদিক মুসা স্যারের মৃত্যু বার্ষিকী পালন করেছে ব্রাক্ষনবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাব

 



এস.এম অলিউল্লাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি


,ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গবেষক,সাংবাদিক, শিক্ষাবিদ, সাদা মনের মানুষ মুহাম্মদ মুসা সারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল  ব্রাহ্মণবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাবে এক স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 উক্ত স্মরণসভায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রেখে  স্মৃতিচারণ করেন, চিনাইর বঙ্গবন্ধু অনার্স কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক কবি মহিবুর রহিম, জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি জহিরুল ইসলাম স্বপন, রম্য লেখক ও নাট্যকার পরিলম ভৌমিক, কবি ও গীতিকার প্রভাষক এম এ হানিফ,কবি ও সাহিত্যিক বহু গ্রন্থের  প্রনেতা আমির হোসেন,বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিলাল বণিক,দৈনিক চলার পথে পত্রিকার সম্পাদক মুস্তাফিজুর রহমান ভূঁইয়া ফেরদৌস, কবি ও নাট্যকার সাদমান শাহিদ,রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক প্রবীর চৌধুরী রিপন, রিপোর্টার্স ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক নাসির উদ্দিন,রিপোর্টার্স ক্লাবের সদস্য আবু সোহেল সরকার, জাকির হোসেন জিকু ও বিশিষ্ট সর্দার আব্দুল মান্নান। সভায় স্যার এর স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা ইসরাক হোসাইন। সভায় বক্তাগণ বলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে দ্বিতীয় গবেষক মুসা আর হবে না। তিনি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বটবৃক্ষ ও পথ প্রদর্শক। তিনি চলে যাওয়ায় এখন ব্রাহ্মণবাড়িয়া অভিবাবক শূন্য।বক্তাগন মুসা স্যারের আলোচনা করতে গিয়ে বলেন স্যার এমন একজন মানুষ ছিলেন তিনি সকলের সাথেই বন্দুত্ব সুলভ আচরন করতেন।তিনি ছিলেন একজন বৃক্ষ প্রেমিক।তাকে মানুষ সারা জীবন স্মরন করবে।

আনোয়ারা উপজেলা যুবদলের আহবায়ক কমিটির ঘোষণা

আনোয়ারা উপজেলা যুবদলের আহবায়ক কমিটির ঘোষণা


মোঃ আরিফুল ইসলাম,চট্টগ্রাম,প্রতিনিধি,চট্টগ্রামের আনোয়ারাঃউপজেলা জাতীয়তাবাদী যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় যুবদলের দপ্তর সম্পাদক কামরুজ্জামান দুলাল এ কমিটির অনুমোদন দেন।

সোমবার রাত ৯টার দিকে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবদলের সভাপতি মো. শাহজাহান ও সাধারণ সম্পাদক মো. আজগরের যৌথ স্বাক্ষরে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

৩১ সদস্যবিশিষ্ট এ কমিটিতে হারেছ আহমদকে আহ্বায়ক ও ফারুক হোসেনকে সদস্য সচিব করা হয়েছে।


কমিটির যুগ্ম আহ্বায়করা হলেন- আলমগীর হোসেন বাহাদুর, ইফতিয়ার সাঈদ মানিক, মোরশেদ আলী, রাশেদুল ইসলাম, তারেকুল ইসলাম, মোহাম্মদ ইসহাক, রহিম শাহ্, মোহাম্মদ লোকমান, আহমদ নুর, আবদুল হামিদ তালুকদার।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- মোহাম্মদ আব্বাস, মিজানুর রহমান, মোহাম্মদ সেলিম, খালেক মোশাররফ হোসেন সোহেল, আবদুল মান্নান, দেলোয়ার হোসেন, সেলিম উদ্দিন, হেলাল উদ্দিন, ওয়াজেদ আলী, আলাউদ্দিন তালুকদার, মো. বদরুজ্জামান, সিরাজুল ইসলাম, আবদুল হালিম, সেলিম উদ্দিন, আশরাফ আলী, গিয়াস উদ্দিন, জয়নাল উদ্দিন, আবদুল জব্বার ও শহিদ সরোয়ার।


ঘোষিত এ কমিটিকে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে অধীনস্থ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করে সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবদলের সভাপতি মো. শাহজাহান।

মানব কল্যাণ ছাত্র সংগঠনের উদ্যোগে ফ্রী ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প

মানব কল্যাণ ছাত্র সংগঠনের উদ্যোগে ফ্রী ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প




মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ।

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

মানব কল্যাণ ছাত্র সংগঠন এর উদ্যোগে নতুন রক্ত দাতাদের উৎসাহিত করার লক্ষ্য ফ্রী ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প  করেছেন সংগঠনটি। উমর মজিদ ইউনিয়ন পরিষদ হল রুমে দিন ব্যাপি  এ কাযক্রম চালায়। এছাড়াও সংগঠনটি  অনেক সেবামৃলক কাজ করে আসছে।মানব কল্যান সংগঠনটি প্রতিনিয়ত রক্তদান,মানুষকে রক্ত দানে উৎসাহিত করা,গাছ  লাগানো,,করোনা মোকাবেলায়  উপায়,সমাজসেবা কাজ করে।

আশাশুনিতে যানবাহনে ধূমপানমুক্ত সাইন স্থাপন

আশাশুনিতে যানবাহনে ধূমপানমুক্ত সাইন স্থাপন


আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা  প্রতিনিধিঃ ধুমপান থেকে নিরুৎসাহিত করা ও ধূমপানের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে প্রচার করার লক্ষে আশাশুনিতে বিভিন্ন যানবাহনে ধূমপানমুক্ত সাইন স্থাপন করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ১১ টার সময় আশাশুনি বসা স্ট্যান্ডে এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। 


বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোট-ঢাকা এবং আশাশুনি ইজিবাইক মালিক সমবায় সমিতির সহযোগিতায় বেসরকারি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান ‘মৌমাছি’র বাস্তবায়নে পাবলিক পরিবহনে ধূমপানমুক্ত সাইন ৭০টি ইজিবাইকে স্থাপন করা হয়। সাইন স্থাপন কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসীম বরণ চক্রবর্তী। পরোক্ষ ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার নিরুৎসাহিত করা এবং ধূমপানমুক্ত স্থান নিশ্চিতকরণের জন্য আইনে পাবলিক প্লেস ও পাবলিক পরিবহনে ধূমপানমুক্ত সাইন স্থাপন ও নোটিশ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বাংলাদেশে প্রচলিত আইন অনুযায়ী শুধু পাবলিক প্লেস ও পাবলিক পরিবহণ হিসেবে তালিকাভুক্ত স্থানে ধূমপান নিষিদ্ধ। অথচ তামাক কোম্পানিগুলো নিজেরা এবং তাদের সুবিধাভোগীদের মাধ্যমে ‘প্রকাশ্যে ধূমপান নিষিদ্ধ’ বলে প্রচার করে প্রচলিত আইনকে হেয় করে, যাতে পাবলিক প্লেস ও পরিবহণ ধূমপানমুক্ত করার উদ্দেশ্য সফল হতে না পারে। আইনে পাবলিক পরিবহণ বলতে বোঝানো হয়েছে- মোটর গাড়ি, বাস, রেলগাড়ি, ট্রাম, জাহাজ, লঞ্চ, যান্ত্রিক সকল প্রকার জন-যানবাহন, উড়োজাহাজ কিংবা সরকারি গেজেটে প্রজ্ঞাপন দিয়ে নির্দিষ্ট করা বা ঘোষিত অন্য যে কোনো যানকে বোঝানো হয়েছে। এসব স্থানকে ধূমপান মুক্ত রাখতে সকলের প্রতি আহবান জানান হয়। এসময় মৌমাছির সভাপতি মানিক চন্দ্র বাছাড়, আশাশুনি ইজিবাইক মালিক সমবায় সমিতির সভাপতি আমিরুল ইসলাম, সহ সভাপতি মইউর ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক সুদেব চন্দ্র মন্ডল, জাহাঙ্গীর আলম, গ্রীণ টার্চ নির্বাহী পরিচালক পলাশ স্বর্ণকার প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

শ্রীউলায় বিকল্প রিং বাঁধ নির্মান কাজ এগিয়ে চলেছে

শ্রীউলায় বিকল্প রিং বাঁধ নির্মান কাজ এগিয়ে চলেছে


আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা  প্রতিনিধিঃ অনেক জল্পনা কম্পনার অবসান ঘটিয়ে আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নে বিকল্প রিং বাঁধের কাজ শুরু হয়েছে। বাঁধটি নির্মীত হলে শ্রীউলা ইউনিয়নের বৃহত্তর জনগোষ্ঠি ও আশাশুনি সদরের গ্রামসমুহ প্লাবনের হাত থেকে সাময়িকভাবে রক্ষা পাবে। 


আম্ফানের তান্ডবে শ্রীউলা ইউনিয়ন ও প্রতাপনগর ইউনিয়নের হিজলিয়া কোলা এলাকার পাউবো’র বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে এবং পরববর্তীতে খোলপেটুয়া নদীর অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ও অবিরাম বৃষ্টিপাতে এলাকার বাধ ভেঙ্গে শ্রীউলা ইউনিয়নের ২২ টি গ্রাম এবং আশাশুনি সদরের ৯টি গ্রাম ও প্রতাপনগরের ২টি গ্রাম প্রবল ¯্রােতে একাকার হয়ে যায়। তিন মাস পার হলেও বাঁধ নির্মান কাজ সম্ভব হয়নি। সবশেষে বিভাগীয় কমিশনার, সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের উপস্থিতিতে এলাকার বৃহত্তর অংশকে রক্ষার্থে মাড়িয়ালা থেকে কোলাগামী সড়কের উপর দিয়ে রিং বাঁধ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু বাঁধ নির্মানের উদ্যোগ নেওয়া হলে কিছু মানুষ বিশেষ করে রিং বাঁধের বাইরে থাকা মানুষের একটি অংশ একাজে বাধ সাধেন। অবশেষে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অসহায় মানুষের দুঃখ দুদর্শার কথা বিবেচনা করে মানুষকে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করে বিকল্প বাঁধের ব্যবস্থার কাজ শুরু করলেন ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিল। এখবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দীর্ঘদিনের পানি বন্ধি সহায় সম্বল হারা মানুষের মধ্যে স্বস্তির নিঃশ্বাস লক্ষ্য করা গেছে। তারা বলছে চেয়ারম্যান সাকিলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বিকল্প বাঁধ নির্মানের কাজ শুরু হয়েছে, এবার বুঝি পানি বন্ধি থেকে মুক্তি পাবো। ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিল ও পানিবন্ধি মানুষরা জানান, ঘুর্ণিঝড় আম্ফানে তিন মাস অতিবাহিত হলেও হাজরাখালী বহুল আলোচিত বেড়ী বাঁধটি নির্মান কাজ সম্ভব হয়নি। এর মধ্যে সরকার কর্তৃক লক্ষ লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দিলেও বাঁধ নির্মানে শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব না হওয়ায় এলাকাবাসীর সাথে আলোচনার ভিত্তিতে এই বিকল্প বাঁধের ব্যবস্থা করা হয়েছে। গত পনের দিনের ব্যবধানে শ্রীউলা ইউনিয়নসহ পার্শ্ববর্তী আশাশুনি সদর ইউনিয়ন এর হাজার হাজার মানুষ পানি বন্ধি হয়ে পড়ে। ভেসে গেছে হাজার হাজার বিঘা মৎস্য ঘের, গৃহহীন হয়ে পড়েছে অসংখ্য মানুষ। এরা সাইক্লোন সেল্টার সহ বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিয়েছে এবং অসংখ্য মানুষ ইউনিয়ন ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হয়েছে। ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় বার বার খবর ফলাও করে প্রকাশিত হয়েছে, কিন্তু বাঁধটি নির্মানে বিলম্ব হওয়ায় এই বিকল্প ব্যবস্থাটি গ্রহণ করা হয়েছে। বিকল্প বাঁধের কাজ শেষ দু/একটি গ্রাম বাদে বাকি গ্রামগুলো পানি বন্ধি থেকে মুক্তি পাবে। হাজার হাজার সহয় সম্বল হারা মানুষ নিজ জন্ম স্থানে ফিরে আসতে পারবে। তিনি আরও বলেন, প্লাবিত এলাকায় বেশির ভাগ গ্রাম বিদ্যুৎ, স্যানিটেশন, সুপেয় পানির সংকট দেখা দেওয়ায় শত শত মানুষ  মানবেতর জীবন যাপন করছে। সন্ধ্যার পরে প্লাবিত এলাকাটি দেখলে এটি মানুষের বাড়ি না ভূতের বাড়ি বোঝার কোনো উপায় থাকে না। এলাকায় বিদ্যুৎ, স্যানিটেশন ও সুপেয় পানি ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসকের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।