কাগমারি গ্রামের অসুস্থ জামাল বক্স কে দেখতে এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান

 কাগমারি গ্রামের অসুস্থ জামাল বক্স কে দেখতে এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান

স্টাফ রিপোর্টার: কাগমারি গ্রামের অসুস্থ জামাল বক্স(৮০) কে দেখতে যান এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান।জানা যায় যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলায় ১ নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের কাগমারি গ্রামের সাবেক আওয়ামী লীগ কর্মী অসুস্থ জামাল বক্স গতকাল সকাল থেকে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে নিজ বাড়িতে শয্যাশায়ী আছেন ।এই সংবাদ পেয়ে অসুস্থ জামাল বক্স এর শারীরিক খোঁজখবর নিতে তার নিজ বাড়িতে আজ ৯ অক্টোবর বিকাল সাড়ে পাঁচটায় ছুটে যান এমপি প্রতিনিধি ও অত্র ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান ।এ সময় তিনি তার পাশে  থেকে জামাল বক্সের সার্বিক খোঁজ-খবর নেন এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। 

টিকটক, লাইকি ও বিগো লাইভ নিষিদ্ধ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে নোটিশ

টিকটক, লাইকি ও বিগো লাইভ নিষিদ্ধ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে নোটিশ

নিউজ ডেস্ক : মোবাইল ফোনের জনপ্রিয় অ্যাপ টিকটক, লাইকি ও বিগো লাইভ নিষিদ্ধ ঘোষণা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে নোটিশ পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী মো. জে আর খাঁন রবিন। গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) রেজিস্ট্রি ডাকযোগে স্বরাষ্ট্র সচিব, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি সচিব, তথ্য সচিব, বিটিআরসির চেয়ারম্যান বরাবরে এ নোটিশ পাঠান তিনি।

সুপ্রিম কোর্টের এ আইনজীবী বলেন, এসব অ্যাপ ব্যবহারে তরুণ প্রজন্মকে বিপথগামী হচ্ছে। নৈতিকতা, সামাজিক মূল্যবোধ ও পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ নষ্ট হচ্ছে। তরুণ বা কিশোর গ্যাংয়ে জড়িয়ে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে অংশ নিচ্ছে। সহিংস হয়ে উঠছে। এসব অ্যাপসের মাধ্যমে সস্তা জনপ্রিয়তা অর্জন করতে চায় এবং নিজেকে অনেকে জনপ্রিয় ভাবতে শুরু করে।

টিকটকের বিষয়ে জে আর খাঁন রবিন বলেন, এর মাধ্যমে অনেক কিশোর-তরুণ উদ্ভট রঙে চুল রাঙিয়ে এবং ভিনদেশি অপসংস্কৃতি অনুসরণ করে ভিডিও তৈরি করছেন। এসব ভিডিওতে সহিংস ও কুরুচিপূর্ণ কনটেন্ট থাকে। স্বল্প বসনা তরুণীরা টিকটকে অশ্লীল ভিডিওতে নাচ, গান ও অভিনয়ের পাশাপাশি নিজেদের ধূমপান ও সিসা গ্রহণ করার ভিডিও আপলোড করেছেন।

তিনি বলেন, এরই মধ্যে ভারত, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া টিকটক ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, এ অ্যাপগুলোর মধ্যে এক ধরনের শো-অফের বিষয় থাকে।

এদিকে বিগো-লাইভ অ্যাপের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণা ও যৌনতার ফাঁদ তৈরি করে কৌশলে টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটছে বলেও জানান তিনি। প্রতারক চক্রের ফাঁদে পড়ে অনেক তরুণ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এসব অ্যাপের ক্ষতিকর দিক বিবেচনা করে ভারত ও পাকিস্তান এ অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে।

অন্যদিকে এ নোটিশ পাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যেই টিকটক, লাইকি ও বিগো লাইভ অ্যাপস বন্ধ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। তা না হলে হাইকোর্টে রিট দায়ের করবেন বলেও জানিয়েছেন জে আর খাঁন রবিন।

সূত্র : আরটিভি

আশাশুনিতে অসহায়দের মাঝে বস্ত্র বিতরণ

আশাশুনিতে অসহায়দের মাঝে বস্ত্র বিতরণ

আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের পাইথালীতে অসহায় ও হতদরিদ্রদের মাঝে থ্রী পিছ ও শাড়ী বিতরণ করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে কুন্দুড়িয়া বাস্তহারা কল্যাণ সংস্থার আয়োজনে পাইথালী বাজারস্থ সংস্থার কার্যালয়ে ইউনিয়নের ৭০ জন অসহায় ও হতদরিদ্রদের মাঝে এ বস্ত্র বিতরণ করা হয়। সংস্থার সভাপতি আঃ রহমান গাজীর সভাপতিত্বে বিতরণ অনুষ্ঠানে ইউপি সদস্য মতিয়ার রহমান গাজী, অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য হযরত আলী, সংস্থার সহ-সভাপতি যতি রানী, সদস্য মিনু রহমান, মুর্শিদা খাতুন, যমুনা রানী মন্ডল, রুপালী খাতুনসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

দামুড়হুদার বিষ্ণুপুরে আন্তঃগ্রাম চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টূর্নামেন্টের উদ্বোধন

 দামুড়হুদার বিষ্ণুপুরে আন্তঃগ্রাম চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টূর্নামেন্টের উদ্বোধন

মোঃকাউসার আলী, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ আজ শুক্রবার (৯ই অক্টোবর) বিকাল চারটায় উদয়ন সংঘ বিষ্ণুপুরের আয়োজনে দামুড়হুদা উপজেলার বিষ্ণুপুর ঐতিহ্যবাহী ফুটবল মাঠে আন্তঃগ্রাম চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টূর্নামেন্টের উদ্বোধন করা হয়।আট দলের এ টূর্নামেন্টটি উদ্বোধন করেন জুড়ানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব মোঃসোহরাব হোসেন।এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃআব্দুল মান্নান(উপদেষ্টা,উদয়ন সংঘ বিষ্ণুপুর), জনাব এ্যাড. মোঃরফিকুল আলম রান্টু(সাংগঠনিক সম্পাদক,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ,দামুড়হুদা উপজেলা শাখা),জনাব মোঃ রফিকুল ইসলাম(সভাপতি,বাংলাদেশ কৃষকলীগ,দামুড়হুদা উপজেলা শাখা),জনাব মোঃ সাইদুর রহমান সন্টু(সাধারন সম্পাদক,বাংলাদেশ কৃষকলীগ,দামুড়হুদা উপজেলা শাখা),জনাব মোঃএ্যাড.রেজাউল হক(সভাপতি,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ,জুড়ানপুর ইউনিয়ন শাখা),জনাব মোঃআবু তালেব(সাধারন সম্পাদক,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ,জুড়ানপুর ইউনিয়ন শাখা) সহ প্রমূখ।

বক্তারা বক্তব্যে বলেন সমাজ এখন অবক্ষয়ের দিকে তাই যুবকদেরকে সুপথে পরিচালনা করার জন্য খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই।আর উদ্বোধনী দিনে মুখোমুখি হয় বিষ্ণুপুর একাদশ এবং ইব্রাহিমপুর একাদশ।উক্ত খেলায় বিষ্ণুপুর একাদশ ৫-০ গোলো ইব্রহিমপুর একাদশকে পরাজিত করে।খেলাটি পরিচালনা করেন যুবায়ের আল মারুফ শিমুল,রতন এবং শিপন।

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা ও শ্লীলতাহানীর ঘটনায় প্রি-ক্যাডেটের প্রধান শিক্ষক আটক

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা ও শ্লীলতাহানীর ঘটনায় প্রি-ক্যাডেটের প্রধান শিক্ষক আটক

আসাদ উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: আশাশুনিতে ৬ষ্ঠ এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা ও শ্লীলতাহানীর ঘটনায় কে.বি.এ প্রি-ক্যাডেট স্কুলের প্রধান শিক্ষক আটক হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে, শুক্রবার বেলা ১০টার দিকে আশাশুনি উপজেলা সদরের কোদন্ডা গ্রামে। থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ গোলাম কবির সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে শিক্ষক মইনুর ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে।

এজাহার সুত্রে জানাগেছে, ঘটনার সময় ছাত্রীর পিতা-মাতা বাঁশ কাটার কাজে বাড়ীতে না থাকার সুযোগে কোদন্ডা গ্রামের মৃত বাবর আলী কারিকরের পুত্র মঈনুর ইসলাম তাদের বাড়ীতে যায়। ছাত্রী যথানিয়মে শিক্ষকের সাথে কুশল বিনিময় করে বারান্দায় চেয়ারে বসতে দেয়। এক পর্যায়ে মইনুর অভিভাবকদের অবস্থান জেনে শুনে আচ করে ছাত্রীকে কথা আছে বলে ঘরের ভেতরে ডেকে নেয়। কোমলমতি শিশু ছাত্রী (!) সরল মনে শিক্ষকের ডাকে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে। এরপর মঈনুর মেয়েটিকে ঝাপটে ধরে চুমু খেয়ে স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানী ঘটায়। এক পর্যায়ে মঈনুর মেয়েটির বাড়ী থেকে বেরিয়ে যায়। এরপর মেয়েটি তার ঢাকায় থাকা বড় বোনের সাথে মোবাইলে কথা বলার পর ঘটনাটি জানাজানি হয়। বেলা ১২টার দিকে মঈনুর পুনরায় মেয়েটির বাড়ীতে আসলে বাড়ীর লোকজন থানা পুলিশকে জানায়। থানা অফিসার ইনচার্জ গোলাম কবির সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে মেয়েটির বাড়ী যেয়ে মঈনুর ইসলামকে আটক করে এবং ভিকটিমকে থানা নিয়ে আসে। এ ঘটনায় মেয়েটি নিজেই বাদী হয়ে মঈনুর কে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং-১০, তাং-০৯/১০/২০২০। এ ব্যাপারে শিক্ষক মঈনুর ইসলাম জানান, আমি মেয়েটির বাড়ী যায় এবং স্কুলের বেতনের কথা বলি।

 ছাত্রীটি বলেন, আমার বাবা মা বাড়ী নেই। এরপর আমি আমার বাড়ীতে ফিরে আসি। ছাত্রীটি মেধাবী হওয়ায় ছোট বেলা থেকে আমি তাকে কোলে পিঠে করে যত্ন করি। শ্লীলতাহানীর ঘটনা অমুলক। শ্লীলতাহানীর ঘটনা শুনে কোদন্ডা গ্রামের জনৈক এক ব্যক্তির সঙ্গে সরল বিশ্বাসে আমি পুনরায় মেয়েটির বাড়ীতে আসি। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আমাকে আটক করে।

 এ ব্যাপারে আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ বলেন, ভিকটিমের জবানবন্দী নিয়েছি, মামলা এজাহার ভুক্ত হয়েছে। আরও অধিকতর তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

পূর্ব শত্রুতার জেরে ড্রাগিস্ট সমিতির সহায়তায় ঔষধ ফার্মেসী বন্ধের অভিযোগ

পূর্ব শত্রুতার জেরে ড্রাগিস্ট সমিতির সহায়তায় ঔষধ ফার্মেসী বন্ধের অভিযোগ

রহমতউল্লাহ নওগাঁ, বদলগাছীঃ নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলার ঐতিহাসিক পাহাড়পুর বাজারে পূর্ব শত্রুতার জেরে নওগাঁ কেমিস্ট এ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতির সহায়তায় "মেসার্স সজল ফার্মেসি'র"উচ্চশিক্ষিত তরুন উদ্যোক্তা,ঔষধ ব্যবসায়ী সাদ্দাম হোসেনের ঔষধেরনওগাঁর ঐতিহাসিক পাহাড়পুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে ড্রাগিস্ট সমিতির সহায়তায় ঔষধ ফার্মেসি বন্ধের অভিযোগ ! 

এ বেপারে বাজারের অন্য ঔষুধ ব্যেবসায়ীর  কাছে জানতে  চাইলে তিনি বলেন  সমিতি তে আমাদের  কিছু  নিয়ম করা আছে,  কোন ঔষুধ ব্যবসায়ীর ঔষুধ  বিক্রয়  করতে গেলে  সমেতির দেওয়া নিয়ম অনুযায়ী ঔষধ বিক্রয় করিতে হবে,  তিনি আরো বলেন  সজল ফার্মেসির প্রোপাইটর সাদ্দাম হোসেন  তাদের সমিতির দেওয়ার নিয়ম ভেঙ্গে ঔষধ বিক্রয় করেন ।  তা সমিতির কর্মী  সরোজমিনে দেখেন। এজন্য,নওগাঁ কেমিস্ট এ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতির দুটি লিখিত চিঠিতে এ-ই অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়।গোবরচাঁপাহাট শাখার ড্রাগিস্ট সমিতি’র পক্ষ থেকে সাধারন সম্পাদক ও সভাপতির সিলসহ স্বাক্ষরিত ০৩/১০/২০২০ ইং তারিখের স্বারক বিহীন নোটিশে  বলা হয়েছে যে, বাংলাদেশের কোন ঔষধ কোম্পানি বা ঔষধ ব্যবসায়ী তার ফার্মেসিতে বাঁকি পাওনা টাকা ছাড়া কোন প্রকার লেনদেন বা ঔষধ বেচাকেনা করতে পারবেন না।

অথচ,"মেসার্স সজল ফার্মেসি"র তরুন এ-ই ব্যবসায়ী  ড্রাগ লাইসেন্সসহ ব্যবসা পরিচালনা করছেন,যাতে উক্ত ব্যবসা বন্ধ করার মত নোটিশ ঔষধ প্রশাসনের আইনে সম্পর্ণ আইনবিরুদ্ধ।

এ ব্যাপারে উক্ত ভুক্তভোগী ঔষধ ব্যবসায়ী সাদ্দাম হোসেনের সাথে  দৈনিক পএিকার জেলা  প্রতিনিধি সহ সারজমিনে  কথা বলে জানা যায় যে,এ-ই করোনাকালীন দুঃসময়ে দেশের কল্যাণে গরীব,দুঃস্থ ও অসহায় মানুষকে আমি বিনামূল্যে কিছু কিছু ঔষধ ও সেবা দিয়ে আসছি এবং ন্যায্যমূল্যে ঔষধ বিক্রির ফলে আমার ফার্মেসিতে ক্রেতার সমাগম দেখে অন্যরা হিংসায় ফেটে পড়ে এবং পিছনে উঠেপড়ে লাগে। কিছুদিন আগে পাহাড়পুর বাজারের আর এক ঔষধ ব্যবসায়ী রাশেদ হোসেন পুটন নেশা জাতীয় পেন্টাডল ট্যাবলেটসহ র‍্যাব কর্তৃক গ্রেফতার হয়,সেই রাশেদ আমার বিরুদ্ধে  কমমূল্যে ঔষধ বিক্রির  মিথ্যা অভিযোগ করে নওগাঁ কেমিস্ট এ্যান্ড ড্রাগিস্ট  সমিতির পাহাড়পুরের কথিত সভাপতি  স্থানীয় ডাক্তার বদিউজ্জামানের কাছে,কিন্তু সেই ডাক্তারের সাথে আমার আগের সম্পর্ক ভাল ছিলনা হেতু সমিতিতে অভিযোগ করে,কিন্তু সমিতির কেউ কোন তদন্ত না করেই আমার ঔষধের ব্যবসা বন্ধের নোটিশ জারি করে। 

এ ব্যপারে গোবরচাঁপা শাখার ড্রাগিস্ট সমিতির সভাপতি ছরোয়ার হোসেনের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে ও তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। কিন্তু সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদের   সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি নোটিশ  দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন,কিন্তু কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।

তাদের উক্ত সমিতির নিবন্ধন বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন,আমাদের কোন লাইসেন্স নেই,আমরা নওগাঁ সমিতির অধীনে চলি।

এ দিকে ভুক্তভোগী ঔষধ ব্যবসায়ী সাদ্দাম হোসেন ঔষধ প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করে ন্যায়সঙ্গত আইন প্রতিষ্ঠার দাবি জানান।

ঔষধ প্রশাসনের এক কর্মকর্তার সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি জানান, লিখিত অভিযোগ পেলে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

 ভুক্তভোগী বলেন  এ সমস্যার সুষ্ঠু তদন্ত করে এর  সমাধান চান তিনি।

পুলিশই জনগণ আর জনগণই পুলিশ : মোঃ শাহাব উদ্দিন

পুলিশই জনগণ আর জনগণই পুলিশ : মোঃ শাহাব উদ্দিন

আকরাম হোসাইন, মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের বড়লেখায় বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আলহাজ্ব মোঃ শাহাব উদ্দিন বলেন

করোনাকালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পুলিশ দেশব্যাপিমানুষের পাশে দাঁড়িয়ে প্রমাণ করেছে পুলিশই জনগণ আর জনগণই পুলিশ।পুলিশের সেবা গ্রহণে জনগণের মানসিকতা তৈরীকরতে হবে। বড়লেখার থানায় ইউনিয়ন ভিত্তিক মোবাইল সেবা প্রদানের জন্য পুলিশসুপারের দেয়া নতুন পিকআপ ভ্যানের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আলহাজ্ব মোঃ শাহাব উদ্দিন। সভায় সভাপতিত্ব করেন মৌলভীবাজার জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  গোলাম সাদেক কাওছার দস্তগীর।

পরিচালনায় বড়লেখা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলাচেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, ইউএনও মো. শামীম আল ইমরান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সিরাজ উদ্দিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তাজউদ্দিন, থানার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, পৌরমেয়র আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল উদ্দিন, উত্তর শাহবাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আহমদ জুবায়ের লিটন প্রমুখ।

পটিয়ার দক্ষিণ ভুর্ষি ইউনিয়নে সেনাবাহিনীর (অবঃ) কর্মকর্তার উপর হামলা; আটক-২

পটিয়ার দক্ষিণ ভুর্ষি ইউনিয়নে সেনাবাহিনীর (অবঃ) কর্মকর্তার উপর হামলা;  আটক-২

আরিফুল ইসলাম, পটিয়াঃ-   চট্টগ্রামের পটিয়ার দক্ষিণ ভুর্ষি  ২নম্বর ওয়ার্ড খানমোহনা আহমদ ছফা চেয়ারম্যানের বাড়িতে পুর্ব শক্রতার  জের ধরে সেনাবাহিনীর (অবঃ) কর্পোরাল মোঃ নাজিমুল হক চৌধুরী(৪৮) ও তার মেয়ে  ফাহমিনা হক মমি (১২) কে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে-কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করার মামলার এর প্রধান আসামি মুদাচ্ছিল (প্রকাশ) মাসুম কে আটক করেছে পুলিশ। 

৮ অক্টোবর  বৃহস্পতিবার রাতে মাসুম  উপজেলার আশিয়া ইউনিয়নে তার এক নিকট আত্মীয় বাড়িতে আত্মগোপন করে।  পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে  অভিয়ান চালিয়ে তাকে আটক করেন।  এছাড়াও ৯ অক্টোবর শুক্রবার বিকাল পটিয়া থানার মোড় এলাকা থেকে মামলার অপর ২ নম্বর আসামি মোঃ মোজ্জাম্মেল হক চৌধুরীকে গ্রেফতার করেন পটিয়া থানার এস আই মোরশেদ এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ। বিষয়টি এস আই মোরশেদ নিশ্চিত করেন। 

মামলার এজহার সুএে জানা যায়, গত ২ অক্টোবর শুক্রবার সকালে নাজিমুল হক চৌধুরী বসতঘরে  মুদাচ্ছিল হক প্রকাশ মাসুম (২২) মোজ্জাম্মেল হক চৌধুরী (৫০) সুরাইয়া আকতার (১৮) পুতুল (৪২) সহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪ জন  মাসুম এর নেতৃত্বে পরিকল্পিতভাবে সেনাবাহিনীর (অবঃ) কর্পোরাল  নাজিমুল হক চৌধুরীকে এলোপাতাড়ি কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত  জখম করে। এতে তার চোখে এবং কপালে গুরুত্বর জখম হয়। এসময় তার শিশু কন্যা পিতার উপর হামলা ঘটনা দেখে এগিয়ে আসলে ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাএী ফাহমিনা হক মমিকে কিরিচ দিয়ে  মাথায় কুপিয়ে জখম করে। এছাড়াও তারা ভাংচুর তান্ডব লুটপাট চালিয়ে আনুমানিক ৪ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন করে নাজিমের । 

এব্যাপারে সাবেক সেনা কর্মকর্তা  (কর্পোরাল)  নাজিমুল হক চৌধুরী বাদী হয়ে পটিয়া থানায় ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা নং ১৪/২০ ইং  দায়ের করলে পটিয়া থানার পুলিশ ১  মাসুম ও তার পিতা মোজাম্মেল হক চৌধুরী কে    গ্রেফতার করেন বলে থানা পুলিশ সুএে জানা যায়।                                            

যশোরের বেনাপোলে ৫৯৩ বোতল ফেনসিডিল সহ পাচারকারী আটক

 যশোরের বেনাপোলে ৫৯৩ বোতল ফেনসিডিল সহ পাচারকারী আটক

আব্দুল জব্বার, যশোরঃ যশোরের শার্শা উপজেলার বেনাপোল সীমান্তে অভিযান চালিয়ে ৫৯৩ বোতল ফেনসিডিলসহ আল আমিন (২২) নামে, একজন মাদক পাচারকারীকে আটক করেছে বিজিবি। আটক  আল আমিন শার্শার আন্দোপোতা গ্রামের মাযহার মোড়ের ছেলে।

বেনাপোল বিজিবি কোম্পানী সদরের কমান্ডার সুবেদার মিজানুর রহমান, ফেনসিডিলসহ পাচারকারী আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আল আমিনের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। সাথে শার্শার পারুইঘুপি গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে ইব্রাহীম (২৫) ও দূর্গাপুর গ্রামের আয়নাল মিয়ার ছেলে রমজান আলী (২৭) নামে দুইজন পলাতক আসামি করা হয়েছে। শুক্রবার ০৯ অক্টোবর সকাল ১০ টার সময় আমড়াখালি বিজিবি চেকপোস্ট থেকে আল আমিনকে আটক করা হয়। 

যশোর ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. সেলিম রেজা জানায়, একজন মাদক পাচারকারী ভারত থেকে বিপুল পরিমাণ মাদকের একটি চালান নিয়ে যশোরের যাচ্ছে। এই সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমড়াখালি বিজিবি চেকপোস্টের সদস্যরা অভিযান চালিয়ে, ৫৯৩ বোতল ফেনসিডিলসহ আল আমিনকে আটক করে বিজিবি।

শ্যামনগর থানা পুলিশের অভিযানে আটক-৩

শ্যামনগর থানা পুলিশের অভিযানে  আটক-৩

 
আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃ সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম (বার)এর  নির্দেশক্রমে, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোঃ আসাদুজ্জামান এর দিকনির্দেশনায়, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার শেখ মোঃ ইয়াসিন আলী, কালিগঞ্জ সার্কেল এর তত্বাবাধনে অফিসার ইনচার্জ  (ওসি) মোঃ নাজমুল হুদা এর নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করিয়া এসআই, মোঃ রইচ উদ্দীন অভিযান পরিচালনা করে গুনামতলী গ্রামের মোঃ নাসিরউদ্দিন  এর ছেলে সাজাপ্রাপ্ত আসামী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, এএসআই, মোঃ মিজানুর রহমান গ্রেফতারী পরোয়না মূলে জয়নগর গ্রামের আঃ আজিজ মোল্যার ছেলে মোস্তফা হাছান কামাল এবং এএসআই, মোঃ মাজহারুল ইসলাম গ্রেফতারী পরোয়ানা মূলে হাজীপুর গ্রামের খোদাবক্স কারিগর এর ছেলে  মোঃ মনিরুল সর্ব থানা- শ্যামনগর, জেলা- সাতক্ষীরাদের আটক করেন। 

আটককৃত আসামীদের শুক্রবার (৯ অক্টোবর) বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

ঝিকরগাছা বাঁকড়ার শিমুলিয়ায় শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ এর ৪৯ তম মৃত্যু বার্ষিক

ঝিকরগাছা বাঁকড়ার শিমুলিয়ায় শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ এর ৪৯ তম মৃত্যু বার্ষিক

আব্দুল জব্বার, যশোরঃ যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার ১১ নাম্বার বাঁকড়া ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা, আব্দুল হামিদ এর ৪৯ তম মৃত্যু  বার্ষিকী ও স্মরণ সভা শুক্রবার সকাল ১০ টার সময়, শিমুলিয়া এস, এম, পি, কে, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গনে, ১১ নাম্বার বাঁকড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, নিছার আলীর সভাপতিত্বে ও যুবসমাজের সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝিকরগাছা উপজেলা মুজিব বাহিনীর উপপ্রধান শহীদ প্রকৌশলী আব্দুল হামিদ স্মরণে শোক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অবঃ) অধ্যাপক ডাঃ মোঃ নাসির উদ্দীন। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম, আরো উপস্থিত ছিলেন  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরাফাত রহমান,

ঝিকরগাছা থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রাজ্জাক, ঝিকরগাছা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম রেজা, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুবনা তাক্ষী, ঝিকরগাছা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা লেয়াকত আলী।

হাজিরবাগ ইউনিয়নের যুবলীগ নেতা ও আগামী ইউপি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ জাকির হোসেন, বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ রিপন বালা, বাঁকড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ সহ নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সাতক্ষীরা ধানক্ষেত থেকে স্কুলছাত্রের লাশ উদ্ধার

সাতক্ষীরা ধানক্ষেত থেকে স্কুলছাত্রের লাশ উদ্ধার

আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ সাতক্ষীরা বাড়ি থেকে বের হওয়ার ১৬ ঘণ্টা পর একটি ধানক্ষেত থেকে পুলিশ তৃতীয় শ্রেণির এক  স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্ধার র করেছে। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ঝিটকী গ্রামের নূর মোহাম্মদের মালিকানাধীন ধান ক্ষেত থেকে এ লাশ উদ্ধার করা হয়। স্বজনদের অভিযোগ তাকে হত্যা করে লাশ ধান ক্ষেতে ফেলে রাখা হয়েছে।

নিহতের নাম হৃদয় ম-ল (৯)। সে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝিটকি গ্রামের বিকাশ ম-লের ছেলে ও ঝিটকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র।

বিকাশ ম-ল জানান, তার সন্তান সম্ভবা স্ত্রী অঞ্জনা ম-ল আড়াই মাস আগে দেবহাটা উপজেলার গাজীরহাটে যায়। এক মাস পর তার পুত্র সন্তান হওয়ায় বর্তমানে সেখানে অবস্থান করছে। বড় ছেলে হৃদয় পার্শ^বর্তী শিক্ষক প্রসেনজিৎ ম-লের কাছে প্রাইভেট পড়ে চারটার দিকে বাড়ি ফেরে। এরপর কয়েকটি পেরেক কেনার জন্য সে একই গ্রামের ইসমাইল হোসেনের বাড়িতে যায়।

ইসমাইলের ছেলে ঝিটকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র মাসুদের কাছ থেকে কয়েকটি পেরেক কিনে সে আর বাড়ি ফেরেনি। সন্ধ্যায় প্রসেনজিতের কাছে আবারো পড়তে যাওয়ার কথা থাকলেও সেখানে যায়নি হৃদয়। একপর্যায়ে সম্ভাব্য সকল স্থানে রাতভর খোঁজাখুজি করা হয়। স্থানীয় সৎসঙ্গ মন্দির ও ঝিটকি মসজিদ থেকে করা হয় মাইকিং।

ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী মাফিয়া শামুক তুলতে যেয়ে ধান ক্ষেতে ভাসমান অবস্থায় হৃদয়ের লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের খবর দেন। স্থানীয়দের মাধ্যমে তিনি ছেলের লাশের সন্ধান পান।

ঝিটকি গ্রামের ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী মাফিয়া খাতুৃন বলেন, প্রতিদিনের ন্যায় তিনি শুক্রবার সকালে হাঁসের জন্য শামুক তুলতে বাড়ির পাশে ধান ক্ষেতে যান। এ সময় হৃদয়কে ধান ক্ষেতের উপর পানিতে ভাসমান অবস্থায় মরে থাকতে দেখে স্থানীয়দের খবর দেন।

ইসমাইলের ছেলে মাসুদ হোসেন জানান, তার কাছ থেকে কয়েকটি পেরেক কিনে হৃদয় কোথায় গিয়েছিল সেটা সে জানে না। ঝিটকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোছাম্মদ মাছুরা খানম জানান, করোনার কারণে স্কুল না হলেও হৃদয় ও তার পরিবারের সদস্যরা তাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতো। শিবপুর ইউপি সদস্য মহাদেব সরকার জানান, ধারণা করা হচ্ছে ওই স্কুল ছাত্রকে হত্যার পর লাশ ধান ক্ষেতে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

সাতক্ষীরা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর্জা সালাহ্ উদ্দিন জানান, তিনি ঘটনাস্থলে এসেছেন। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে একই মুহুর্তে কিছু বলা সম্ভব নয়। তবে ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী মাফিয়া খাতুন, তার দুথ ছেলে মাসুদ, আলমগীর হোসেন ও পাচরকি গ্রামের কওছার আলীর ছেলে আলমগীর হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

মোংলার দিগরাজে সংখ্যালঘুর জায়গা জবর দখল

 মোংলার দিগরাজে সংখ্যালঘুর জায়গা জবর দখল

মোঃ এরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃ মোংলার দিগরাজে সংখ্যালঘুর জায়গা দীর্ঘদিন ধরে জোরপূর্বক দখল করে রাখার অভিযোগ উঠেছে খুলনার প্রভাবশালী ব্যবসায়ী মো: বেলায়েত হোসেনের বিরুদ্ধে। নিজের খরিদ করা ওই সম্পত্তির পুরো দখল পেতে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতনিধির দ্বারে দ্বারে এগারো মাস ঘুরেও অসহায় তাপস গাইন পাচ্ছেন না কোন প্রতিকার। ওই ভূমি জোরপূর্বক দখলে রাখতে বেলায়েত নানা কৌশলে তাপসকে হয়রানী করে আসছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। 

সরেজমিনে খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, মোংলার দিগরাজ মৌজায় এসএ ৩৬৫ ও ১৮৩ নম্বর খতিয়ানে ৬৫ শতক ভূমির রেকর্ডীয় মালিক ছিলেন পূর্ণচরণ মন্ডল। তার মৃত্যুর পর ওই সম্পত্তির ওয়ারিশেরা ১৯৮১ সালে কবলা মুলে বিক্রি করে দেন। ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে ভোগ দখলে থাকা ওই কাকড়া মার্কেটটি মাহফুজুল হক লিমনের নিকট থেকে ২০১৯ সালে ৬৫ শতক ভূমি বায়না চুক্তি দলিল করেন তাপস গাইন। সংখ্যালঘু হওয়ায় তাপস গাইনের ওই সম্পত্তি জোরপূর্বক দখল নিতে থাকেন খুলনার ব্যবসায়ী বেলায়েত হোসেন। 

তাপস গাইন অভিযোগ করে বলেন, তাকে হয়রানী করতে জালজালিয়াতীর মাধ্যমে তার চুক্তিকৃত কাঁকড়া মার্কেটের সম্পত্তিতে জনতা ব্যাংক খুলনা শাখার নিকট দায়বদ্ধ একটি সাইনবোর্ড দিয়ে রেখেছেন বেলায়েত। মুলত ব্যাংকের ওই শাখায় খোঁজ নিয়ে জানা যায় যে এসএ খতিয়ানের উল্লেখিত দুই দাগের ওই সম্পত্তিতে তাদের কোন মর্গেজ বর্তমানে নেই। কাঁকড়া মার্কেটের ওই ভূমি তিনি ক্রয় চুক্তি করায় প্রভাবশালী বেলায়েত হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে নানা কৌশলে তা জবর দখলে রেখেছেন। তার জবর দখল ঠেকাতে তিনি স্থানীয় প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধির দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তাপস আরো বলেন, তিনি চুক্তি করা দলিল মোতাবেক ৬৫ শতক জমির মালিক। অথচ তার দখলে এখন ওই পরিমাণ সম্পতি নেই। বাটোয়ারা করে তার অবশিষ্ট ভূমি দখল নিতে ১১ মাস ঘুরে বেড়াচ্ছেন বিভিন্ন দপ্তরে। তার দাবী সংখ্যালঘু হওয়ায় তার উপর অত্যাচারের নমুনা এটি। তার দলিল অনুযায়ী জমি বুঝে পেতে আর বেলায়ের গংদের অত্যাচার থেকে বাঁচতে তিনি হস্তক্ষেপ চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেকসহ স্থানীয় প্রশাসনের। 

এ বিষয়ে বেলায়েত হোসেনের দাবী তিনি খরিদ সূত্রে ওই ভূমির মালিক। তবে বিষয়টি সমাধানে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে তাদের কয়েকটি বৈঠক হওয়ার কথা স্বীকার করেন বেলায়েত হোসেন। 

এ সংক্রান্ত বিষয়ে উভয় পক্ষের কাগজপত্র নিয়ে থানায় একাধিকবার বৈঠক হলেও প্রভাবশালী বেলায়েত হোসেন কোন সিদ্ধান্ত মানছেন না বলে জানান জমি পরিমাপকারী সংগঠন আমিন সমিতির সদস্যরা।

মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মো: ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, বিরোধপূর্ণ জায়গাটি নিয়ে এর আগে মাপঝোপ ও বসাবসিও হয়েছে। তারপরও ওই জায়গা নিয়ে যাতে কোন ধরণের বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি না হয় সেদিকে পুলিশের নজরদারী রয়েছে।

ফেসবুক স্ট্যাটাস দেয়ার উদ্দেশ্যটা সৃজনশীল মানুষকে ভূমিকা রাখতে হবে

 ফেসবুক স্ট্যাটাস দেয়ার উদ্দেশ্যটা সৃজনশীল মানুষকে ভূমিকা রাখতে হবে

ফেসবুক ইংরেজি শব্দ থেকে এসেছে। এটিকে সংক্ষেপে 'ফেবু' নামেই পরিচিতি লাভ করে। বিশ্ব-সামাজিক আন্তঃযোগাযোগ ব্যবস্থার একটি গুরুত্ব পূর্ণ ওয়েবসাইট, যা ''২০০৪ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি'' প্রতিষ্ঠিত হয়। এটিতে বিনামূল্যে সদস্য হওয়া যায়। এর মালিক হলেন, ফেসবুক ইনক। ব্যবহারকারীগণরা "বন্ধু সংযোজন করা, বার্তা প্রেরণ করা সহ তাদের ব্যক্তিগত তথ্যাবলী হালনাগাদ এবং আদান প্রদান করতে পারেন, তার সঙ্গে ব্যবহারকারী শহর, কর্মস্থল, বিদ্যালয় কিংবা অঞ্চল-ভিক্তিক নেটওয়ার্কেও যুক্ত হতে পারেন। আরও জানা প্রয়োজন যে, শিক্ষাবর্ষের শুরুতে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যকার উত্তম জানাশোনাকে উপলক্ষ করে ফেসবুকটা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক প্রদত্ত বইয়ের নাম থেকেই  ফেসবুক ওয়েবসাইটটির নামকরণ করা হয়। সুতরাং এ গুরুত্বপূর্ণ ওয়েবসাইটটি বেশির ভাগ মানুষ নেতিবাচক কাজে ব্যবহার করে অহেতুক সময় নষ্ট করছে। বলতেই হয় যে, ফেসবুকে লাইক, কমেন্ট পাওয়া জন্যই ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু ফেসবুক স্ট্যাটাস মাধ্যমেই যে কোনো ব্যক্তির হাজার হাজার কমেন্ট যে আসে তা নয়, আবার যাদের আসে সেই কমেন্টের উত্তর দেওয়াটাও  কারোর পক্ষে সম্ভব হয়ে উঠে না। এটাও দেখা যায়, যার কোনো কাজ নেই তারা কমেন্টের উত্তর দেয়ার জন্যই যেন বসে থাকে। তীক্ষ্মভাবে পোষ্টের প্রতিটি কমেন্ট পড়ার চেষ্টাও করে থাকে। কেউ আবার না বুঝেই 'দু'এক লাইন' উত্তর দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়। সুযোগ পেলে অনেকে নিজের ফেসবুক বন্ধুদের নেতিবাচক উত্তর দেয়াতে যেন আগ্রহ পোষণ করে। প্রশংসা করবার মানসিকতা মানুষের নেই বললেই চলে। দিনে দিনে মানুষ মানষকেই প্রসংশা করা থেকে সরে পড়বে বলেই ধারণা করি। পাবলিক কমেন্টে মাঝে মাঝেই বেশকিছু অদ্ভূত সুন্দর কমেন্ট চোখে পড়ে যা থেকে মানুষের উৎসাহ বাড়ে। যাদের প্রসংশা কিংবা উৎসাহ দেওয়া হয়, তারা ভালো পোস্ট দেওয়ার ইচ্ছাটা অব্যাহত রাখে। যার যা কিছু পরিধি বা মেধা, "ফেসবুক প্রোফাইল" দেখলেই- তা বুঝা যায়। লাখো কোটি মানুষ মানুষের কখনো ভক্ত হয় না, যাদের হয় তাদের অবশ্যই অনেক গুন আছে। হিরো আলমের মতো দুএকটা ছোট খাটো উদাহরণ ছাড়া।

ফেসবুক পেইজ একটা নিউজ পেপারের অংশই বলতে পারেন। কখনো কখনো তার চাইতেও বেশী। কিছু কিছু চিরস্থায়ী গিট্টুবাজের দল সহ অধিকাংশ মানুষ এর মর্ম বুঝে না, অহরহ ফাসাদ সৃষ্টি করে। কেউ বিরোধী মতের হলে তার লেখার কটূক্তি করা চাই। 'সত্য কথার' সত্যতা খোঁজার ইচ্ছা একেবারেই থাকে না। আবার এটাও যেন চোখে পড়ে কিছু ভালো মানুষ আছে, তারা কম সংখ্যক হলেও ভালো লেখা বা স্ট্যাটাসের অনেক মূল্যায়ন করে ধন্যবাদ কিংবা ইংরেজিতে থ্যাংকইউ দেয়ার চেষ্টা করে, এই আকালের যুগে তাদেরকে প্রকৃত ভালো মানুষ বলে মনে করি। বিভিন্ন অনিয়মে সমাজের মানুষ আজ নীরব ভূমিকায় ক্ষুদ্ধ আছেন। দু'একটা চিন্তাশীল ভালো মানুষ আছে বলেই তরুণ প্রজন্মরা তাদের কাছ থেকেই সঠিক সু-শিক্ষা পাচ্ছে। আমার খুবই কাছের একজন বললেন, তিনি হচ্ছেন রাজশাহীর বর্নালী মোড়ের- 'হাসান সিজার ভাই'। এক সময়ে তিনি ফেসবুক ব্যবহারকারী ফ্রেন্ডদের কমেন্টে খুব রাগ করতেন। তবে এখন তিনি রাগ করেন না। অনেক বিচার বিশ্লেষন করে তিনি দেখলেন আসলে গিট্টুবাজ সমাজে প্রতিনিয়তই- খুব ভয়ানক কিছু ঘটছে এবং আগামীতেও ঘটবে। এখান থেকেই মানুষের বাহির হওয়ার পথ তিনি দেখছে পাচ্ছে না। সুতরাং বেশী সাহস দেখাতে গেলে কর্মহীন হয়ে যেতে পারেন। তাই, বিনয়ের নামে উটপাখী হয়েই আত্মরক্ষা করছেন, নইলে বন্ধুদের রোষানলের পড়ে যাওয়ার ব্যাপার আছে। একটি প্রবাদ বাক্য তা হলো 'সুসময়ে অনেকেই বন্ধু হয়, অসময়ে হায় হায় কেউ কারো নয়'। যুগের তালে চলছেই চিন্তার ক্ষয়, বন্ধুকে কিছু বলা অতিশয় ভয়। 

যাক, আজকের লেখাটা ছোট হলেও হয়তো একটু ভিন্ন ধরনের সবার তেমন ভালো লাগবে না। যারা ফেইসবুক ব্যাবহার করি, তাদের কাছেই ফেইসবুক ফটো কমেন্টস একটি দরকারী বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবারও বলতে চাই, প্রতিনিয়তই যেন আমরা কম বেশী অন্যের কোনো স্ট্যাটাসের কমেন্ট করে থাকি। তার মধ্যেই এখন বেশির ভাগই করে থাকে ফটো কমেন্টস। সুতরাং ফেসবুকে যে কেউ উত্ত্যক্ত বা বাজে কমেন্ট করলেই, যা করা দরকার তা হলো, বাংলাদেশের 'পুলিশের অফিসিয়াল ফেসবুক' পেজের তথ্যমত বা পরামর্শ। প্রথমে ফেক অ্যাকাউন্টের বিরুদ্ধে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করতে হবে। এজন্যই ফেক আইডির প্রোফাইলে যেতে হবে। তার পর ওই পেজের message বক্সের পাশেই যেন ৩টি ডট (…) চিহ্নিত আইকনে ক্লিক করে Find Support or Report Profile-এ যেতে হয়। পুলিশকে এমন কটূক্তি উত্ত্যক্ত বা বাজে মন্তব্যের তথ্য জানানো দরকার। এখানেই আরও একটি কথা বলা প্রয়োজন ফেসবুক ব্যবহারকারী ফ্রেন্ড সেজেই হয়তো উত্ত্যক্ত করবে। এদের অনেকের আইডি ফেক হয়। এ দেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অর্থাৎ ফেসবুকের ব্যবহারকারী যেমন বাড়ছে, ঠিক সেই সঙ্গে বাড়ছে ফেসবুকে হেনস্থার ঘটনাও। ইনবক্স, কমেন্টস ও টাইমলাইনে বাজে মেসেজ কিংবা ছবি পাঠিয়েই উত্ত্যক্ত করেন অনেকেই। পরিশেষে, চিহ্নিত করেই বলতে পারি, বর্তমান সময়ে মানুষ মানুষের "মহাশত্রু"। মানুষের মঙ্গল কামনা করতে পারেনা। এদের অবশ্যই ফেসবুক বন্ধুকে মান সম্মান সমুন্নত রাখার চেষ্টা করতে হবে। যুগে যুগেই এই দেশে 'মহাজ্ঞানী মহাজনদের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা' আছে। নতুন প্রজন্মকেই বড়দের তা সুশিক্ষা দিতে হবে।তাদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। 

 
লেখকঃ
নজরুল ইসলাম তোফা
টিভি ও মঞ্চ অভিনেতা, চিত্রশিল্পী, সাংবাদিক, কলামিষ্ট এবং প্রভাষক।

যশোরে গভীর রাতে বাসের মধ্যে এক নারীকে ধর্ষণ!

যশোরে গভীর রাতে বাসের মধ্যে এক নারীকে ধর্ষণ!

সুমন হোসেন, যশোর জেলা প্রতিনিধিঃ যশোরে গভীর রাতে বাসের মধ্যে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।গতকাল বৃহস্পতিবার শহরের মনিহার এলাকার কোল্ডস্টোরের কাছে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মনির হোসেন নামে এক পরিবহন শ্রমিককে আটক করা হয়েছে। আটক মনির হোসেনের বাড়ি যশোর সদর উপজেলার রাজারহাট এলাকায়। ঘটনার শিকার নারীর বাড়ি মাগুরার শালিখা এলাকায়।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই নারী মাঝে মধ্যে যশোর থেকে রাজশাহী যাতায়াত করেন। এজন্য রাজশাহীগামী এমকে পরিবহনের বাস কান্ডাক্টর মনির হোসেনের সঙ্গে তার পূর্ব পরিচয় ছিল। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি অন্য একটি পরিবহনে করে রাজশাহী থেকে যশোরে এসেছিলেন। ওই রাতে শালিখায় পৌঁছানো সম্ভব নয় বলে তিনি মনিরের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।মনির কৌশলে তাকে শহরের মনিহার এলাকার কোল্ডস্টোরের কাছে রাখা এমকে পরিবহনের বাসের মধ্যে নিয়ে যায়। এরপর বাসের মধ্যেই তাকে ধর্ষণ করে। পরে ওই নারী পুলিশের কাছে অভিযোগ করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মনিরকে আটক করে।

এ ঘটনায় যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম জানান, রাজশাহী থেকে আসা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে বাস কন্ডাক্টর মনির হোসেনকে আটক করা হয়েছে।

লাকসামে ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে মানববন্ধন

লাকসামে ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে মানববন্ধন

মো: রবিউল হোসাইন সবুজ,লাকসাম  প্রতিনিধিঃ সারাদেশে ক্রমবর্ধমান নারী ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবং দোষীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে লাকসাম মানবন্ধন অনুষ্ঠিত। সারাদেশে যখন ক্রমাগতভাবে চলছে ধর্ষন ও শিশু নির্যাতন। এর প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও শাস্তির দাবিতে  সারাদেশে প্রতিদিন  চলছে মানববন্ধন, প্রতিবাদ, বিক্ষোভ সহ নানা কর্মসুচী।  তারই  ধারাবাহিকতায় কুমিল্লা লাকসাম বাইপাস চত্তরে (৮অক্টোবর)সকাল ১১টায় এক ঘন্টা ব্যপী এক বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সামাজিক এ অবক্ষয়ের প্রতিবাদ প্রতিরোধ ও অপরাধীদের দ্রুত শাস্তির দাবিতে লাকসাম সেচ্ছাসেবী এ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে।  অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সচেতনমহল ও বিভিন্ন পেশাশ্রেণীর মানুষের পাশা-পাশি স্কুল কলেজের শত শত শিক্ষার্থী প্রতিবাদের বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত ব্যানার ফেষ্টুন নিয়ে অংশগ্রহন করে। শান্তিপূর্ণভাবে এ  কর্মসূচি পালনে লাকসাম থানা পুলিশ প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করেন।

উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, লাকসাম পৌর-মেয়ের অধ্যাপক আবুল খায়ের,লাকসাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম হীরা, সাইফুল ইসলাম (রাজু), রমজান আলী (রঞ্জু), মাহমুদুর রহমান (সোহাগ), লাকসাম মাইলস্টোন স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক মোঃ রবিউল হোসাইন (সবুজ) স্বেচ্ছাসেবক, মিজান,আরিফ,ফয়সাল,মহিন,তারেক, বাপ্পী, মুজাহিদুল ইসলাম সাকিব, কাজী সাদ্দাম  হোসেন, জহিরুল কাইয়ুম অনিক, মাহবুব ছোবহানী রুবেল, কামরুজ্জামান আরিফ,  রোকনুজ্জামান রোকন, সালাউদ্দিন, শাহাদাত হোসেন সৌরভ, মিনহাজ মিকাত, তানভীর  হাসান রাজ, সালমা আক্তার সাথী, সাইফুন্নাহার লিহিন, আদিবা জান্নাত, দোলন  সাহা, বৈশাখী বণিক, সাগর ঘোষ, হৃদয় সাহা, জাহিদ হোসেন জহির, মেহেদী হাসান,  সাহাব উদ্দিন, রাফি মাহমুদ, আবু রায়হান সহ অন্যান্য নেতৃ বৃন্দ। 

এসময় প্রত্যেককেই তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন সারা দেশে ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে সরকারের। শুধু সরকার নয় আমাদের নিজেদের নিজেদেরও এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এদিকে সবসময় সোচ্চার হতে হবে। যেন এ ধরনের অপরাধ করে কোন অপরাধী ঘুরে না বেড়াতে পারে, এদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে  এ ধরনের কাজ করার সাহস হারিয়ে ফেলে ধর্ষকেরা।

বক্তাগন দেশে সম্প্রতি ঘটমান বিভিন্ন ঘটনার লোমহর্ষক বর্ননা তুলে ধরেন। এবং সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের দ্রুত শাস্তির দাবি জানান। এসময় বক্তারা প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সকলের প্রতি আহবান জানান।

আউটার রিং রোড প্রকল্পে সংশোধনের উ্দ্যোগ

আউটার রিং রোড প্রকল্পে সংশোধনের উ্দ্যোগ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,হাসান রিফাতঃ চট্টগ্রামের বহুল প্রত্যাশার আউটার রিং রোড প্রকল্পে আবারো সংশোধনী আনা হচ্ছে। চট্টগ্রামে বিনিয়োগকারীদের সুবিধার পাশাপাশি বিমানবন্দর সড়কে যান চলাচলের চাপ কমাতে আউটার রিং রোড প্রকল্প সংশোধনের এই উদ্যোগ নেয়া হয়। প্রায় ৪০ কোটি টাকা বাড়তি খরচ করে এক কিলোমিটার দীর্ঘ একটি রাস্তা নির্মাণের মাধ্যমে চট্টগ্রাম ইপিজেডকে বিশেষ এই সুবিধায় যুক্ত করা হচ্ছে। আগামী জুনের মধ্যে রাস্তাটি চালু করা হবে। গতকাল মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়েছে।

২ হাজার ৪২৬ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়নাধীন চট্টগ্রাম আউটার রিং রোড অনানুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়েছে। প্রকল্পটির আওতায় পতেঙ্গা থেকে সাগরিকা বিভাগীয় স্টেডিয়াম পর্যন্ত ১৫.২ কিলোমিটারের চার লেনের একটি রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। পতেঙ্গা থেকে রাসমনি ঘাট পর্যন্ত ১৫.২ কিলোমিটার আউটার রিং রোড এবং এর পরে পোর্ট টোল রোডের পাঁচ কিলোমিটার ব্যবহার করে পতেঙ্গা থেকে ফৌজদারহাটে ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে। চট্টগ্রাম ইপিজেডের সাথে এই রিং রোডের কোনো সংযোগ ছিল না। ইপিজেডের কোনো গাড়ি এই রোড ব্যবহার করতে হলে পতেঙ্গা ঘুরে রাস্তাটিতে উঠা নামা করতে হত। কিন্তু বিষয়টি বিমানবন্দর সড়কের এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ করতে গিয়ে চট্টগ্রাম ইপিজেডের গাড়ি নিয়ে সিডিএ সংকটের মুখে পড়ে। চট্টগ্রাম ইপিজেডে দৈনিক প্রায় পাঁচ হাজার গাড়ি প্রবেশ করে। এর একটি বড় অংশ কাভার্ড ভ্যানসহ কন্টেনার মোভার। এই বিপুল সংখ্যক গাড়ি নগরীর বিমানবন্দর সড়ক ব্যবহার করে বন্দরে কিংবা ঢাকাসহ দেশের নানা স্থানে যাতায়াত করে। এর একটি বড় অংশেরই চট্টগ্রাম নগরের সাথে কোনো সম্পর্ক থাকে না। 

অথচ এসব গাড়ি নগর ট্রাফিকে মারাত্মক রকমের চাপ সৃষ্টি করে।

বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করতে গিয়ে সিডিএর শীর্ষ কর্মকর্তারা অনুধাবন করেন, ইপিজেডের সাথে যদি আউটার রিং রোডের একটি সংযোগ ঘটানো যায় তাহলে বিপুল সংখ্যক গাড়ি রিং রোড ধরেই ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়ত করতে পারবে। যেসব গাড়ি আর বিমানবন্দর সড়ক কিংবা নগর ট্রাফিকে কোনো প্রভাব ফেলবে না। বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিকভাবে পরিকল্পনা করা হয়। যাতে দেখা যায়, চট্টগ্রাম ইপিজেডের পেছনের দিকেই আউটার রিং রোড গেছে। দূরত্ব খুব বেশি নয়। কিন্তু রিং রোড থেকে ইপিজেড প্রায় ২৮ ফুট নিচু। এজন্য রিং রোড থেকে একটি সাব সড়ক করে ঢালু (স্লোপ) মিলিয়ে গাড়ি চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে। আর এজন্য দূরত্ব বেশি না হলেও প্রায় এক কিলোমিটার একটি সাব সড়ক নির্মাণ করে এই স্লোপ মিলাতে হবে।

চট্টগ্রাম ইপিজেডের পেছনের বাউন্ডারি ভেঙে তাতে আউটার রিং রোডের সাথে যোগাযোগের জন্য প্রবেশ এবং বাইরে যাওয়ার (এন্ট্রি এন্ড এঙিট) সিস্টেম তৈরি করতে হবে। এজন্য খরচ হবে প্রায় ৪০ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের এই প্রস্তাবে গতকাল সায় দিয়েছে গৃহায়ণ ও গনপূর্ত মন্ত্রণালয়। গতকাল ঢাকায় অনুষ্ঠিত একটি বৈঠকে বিষয়টি চূড়ান্ত করা হয়েছে। এই রাস্তাটি নির্মাণের মাধ্যমে চট্টগ্রাম ইপিজেডকে আউটার রিং রোডের সাথে যুক্ত করা হলে বিপুল সংখ্যক গাড়ি ওই রাস্তা ধরে চলাচল করতে পারবে।

এই ব্যাপারে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চিফ ইঞ্জিনিয়ার কাজী হাসান বিন শামসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের প্রেক্ষিতে আউটার রিং রোডের সাথে ইপিজেডকে সংযুক্ত করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, আমরা খুব শীঘ্রই এই কাজ শুরু করব। আগামী জুনের মধ্যে আউটার রিং রোড প্রকল্পের মেয়াদের মধ্যেই রাস্তাটি আমরা চালু করতে পারব। রাস্তাটি হলে শুধু ইপিজেডের গাড়ি চলাচলেই গতিশীলতা নয়, একই সাথে বিনিয়োগকারীরাও বিশেষ সুবিধা পাবেন। বিশ্বের নানা দেশ থেকে আসা বিনিয়োগকারীরা বিমানবন্দরে নেমেই মাত্র কয়েক মিনিটেই ইপিজেডে পৌঁছাতে পারবেন। এটি চট্টগ্রাম ইপিজেডকে একটি ভিন্ন মর্যাদা দেবে বলে মন্তব্য করে সিডিএর চিফ ইঞ্জিনিয়ার কাজী হাসান বিন শামস বলেন, আমরা খুবই দ্রুত প্রকল্পটির কাজ শেষ করতে চাই। আগামী ছয় মাসের মধ্যে রাস্তাটি চালু করে ইপিজেডকে সংযুক্ত করা সম্ভব হবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতিবন্ধী মেধাবী ছাত্রী সাজেদার লেখাপড়া দায়িত্ব নিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু

 প্রতিবন্ধী মেধাবী ছাত্রী সাজেদার লেখাপড়া দায়িত্ব নিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু

 

আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি সাতক্ষীরা  প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা সদর উপজেলার দক্ষিণ আলিপুরের সাজিয়া খাতুন নামের এক এতিম, প্রতিবন্ধী ও মেধাবী শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার দায়িত্ব নিলেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. আসাদুজ্জামান বাবু।

বুধবার বিকালে সাজিয়া খাতুনের লেখাপড়ার জন্য প্রাথমিক ভাবে তারবই, খাতা-কলম ও প্রয়োজনীয় শিক্ষা সামগ্রী ক্রয়ের জন্য তার হাতে ১০হাজার টাকার চেক তুলে দেন তিনি। এসময় সাতক্ষীরা সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কোহিনুর ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জন্মগত ভাবে সাজিয়া খাতুন প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম গ্রহণ করায় তার মাশরিফা খাতুনের সাথে সম্পর্ক বিচ্ছেদ করে চলে যান পিতা আব্দুস সবুর। সেই থেকে নানা শামছুল আলমের বাড়ি থেকে পড়াশুনা করতে থাকেন সাজিয়া খাতুন। তবে সাজিয়া খাতুন ছোটবেলা থেকে পড়ালেখায় প্রচুর মেধাবী হওয়ায় তার লেখাপড়ার কথা ভেবে অন্যত্র বিয়ে করেননি মাশরিফা খাতুন। দারিদ্রতার কাছে হার মেনে সাজিয়া খাতুনকে সু-চিকিৎসা সেবা দিতে পারেননি। তবে অভাব-অনটনের সাথে যুদ্ধ করে উপজেলার আলিপুর ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ২০২০ সালে জিপিএ-৫ পেয়ে এস,এস,সি পাশ করেন সাজিয়া খাতুন। তবে অভাব অনটনের সংসারে ভর্তির টাকা জোগার করতে পারেনি পরিবারটি। বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যানকে অবগত করলে তিনি পরিবারটি সার্বিক সহযোগীতা করবেন বলে জানান।

এবিষয়ে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. আসাদুজ্জামান বাবু বলেন, মেধাবী প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী সাজিয়া খাতুনের বাবা থেকেও নাই। খুব দারিদ্র তার মাঝে তার বেড়ে ওঠা। মেয়েটি অত্যন্ত মেধাবী। অর্থ-অভাবে যেনোতার লেখাপড়াবন্ধ হয়ে না যায় সেকারনে যতো দিন তার লেখাপড়া শেষ না হবে ততোদিন তাকে সার্বিক ভাবে সহযোগীতা করা বলে জানিয়ে তিনি বলেন, সাজিয়া খাতুনকে উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করবেন তিনি।

বিয়ানীবাজারে ছোট ভাই এর হাতে বড় ভাই খুন; গ্রেপ্তার -১

বিয়ানীবাজারে ছোট ভাই এর হাতে বড় ভাই খুন; গ্রেপ্তার -১

আকরাম হোসাইন প্রতিনিধি : সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নের কোনাগ্রামে পারিবারিক বিরোধের জেরে বড়ভাই কামরুল ইসলাম (২৪) কে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে ছোটভাই তানভির (১৭)।বৃহস্পতিবার ভোরে বিয়ানীবাজার মুড়িয়া ইউনিয়নের কোনাগ্ৰামে এ ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় জড়িত ঘাতক তানভিরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিহত কামরুল মুড়িয়া ইউনিয়নের কোনাগ্রামের চান্দ আলীর ছেলে তানভির ও তার আপন ছোটভাই।

বৃহস্পতিবার বিকালে নিহত কামরুল ইসলামের জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।এদিকে, ঘটনার পর থেকেই ঘাতক ছোটভাই তানভিরকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত রাখে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ। অভিযানে নেতৃত্ব দেন জকিগঞ্জ-বিয়ানীবাজার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, বিয়ানীবাজার থানার ওসি হিল্লোল রায় ও পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল হক। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে পার্শ্ববর্তী বড়লেখা উপজেলা থেকে ঘাতক তানভিরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ ব্যাপারে বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিল্লোল রায় বলেন, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। নিহত ও ঘাতক- দুজনেই সহোদর। খুনের পর থেকেই ঘাতক তানভির পালিয়ে ছিল। এরপর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বড়লেখা উপজেলা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় থানায় এখনও কেউ মামলা দায়ের করেনি।

ঝিনাইদহে বিশ্ব ডিম দিবস পালিত

ঝিনাইদহে বিশ্ব ডিম দিবস পালিত

খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, খুলনা ব্যুরো প্রধানঃ প্রতিদিন ডিম খাই, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াই’ এই স্লোগানে ঝিনাইদহে বিশ্ব ডিম দিবস পালিত হয়েছে। শুক্রবার সকালে শহরের পোষ্ট অফিস মোড়ে এ আয়োজন করে জেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আনন্দ কুমার অধিকারী, সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. সুব্রত ব্যনার্জী, মেভেন এর সভাপতি আকরাম হোসেনসহ প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাবৃন্দ। ডিম দিবসে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলো ম্যানুফ্যাকচারার্স এ্যাসোসিয়েশন অফ ভেটেরিনারি নিউট্রিশন এন্ড প্রিমিক্স, পোল্ট্রি এ্যাসোসিয়েশন ও ভেট এক্সিকিউটিভ।

পরে শহরের পোষ্ট অফিস মোড়, আরাপপুরসহ বিভিন্ন স্থানে মানুষের মাঝে দেড় হাজার সিদ্ধ ডিম বিতরণ করা হয়।

মধুপুরে ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবং শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

 মধুপুরে ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবং শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

 মো: আ: হামিদ, মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ সারাদেশে ক্রমবর্ধমান নারী ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবং দোষীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে মধুপুরে মানবন্ধন অনুষ্ঠিত। সারাদেশে যখন ক্রমাগতভাবে চলছে ধর্ষন ও শিশু নির্যাতন। এর প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও শাস্তির দাবিতে  সারাদেশে প্রতিদিন  চলছে মানববন্ধন, প্রতিবাদ, বিক্ষোভ সহ নানা কর্মসুচী।  তারই  ধারাবাহিকতায় টাঙ্গাইলের মধুপুরের  বাসস্ট্যান্ড আনারস চত্তরে (৮অক্টোবর) সকাল ১১টায় এক ঘন্টা ব্যপী এক বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সামাজিক এ অবক্ষয়ের প্রতিবাদ প্রতিরোধ ও অপরাধীদের দ্রুত শাস্তির দাবিতে মধুপুর নাগরিক সমাজ এ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে। 

অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সচেতনমহল ও বিভিন্ন পেশাশ্রেণীর মানুষের পাশা পাশি স্কুল কলেজের শত শত শিক্ষার্থী প্রতিবাদের বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত ব্যানার ফেষ্টুন নিয়ে অংশগ্রহন করে। শান্তিপূর্ণভাবে এ  কর্মসূচি পালনে মধুপুর থানা পুলিশ প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করেন।

উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মধুপুর শহিদ স্মৃতি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ নাগরিক সমাজ মধুপুরের অন্যতম সংগঠক  মোঃ বজলুর রশিদ খান চুন্নু,  সমাজ সেবক অন্যতম সংঠক (নাঃ সমাজ) এডভোকেট সালা্উদ্দিন আহমেদ সেলিম, নাগরিক সমাজের অন্যতম সংগঠক উদ্যোক্তা সমাজ কর্মী মোঃ বিল্লাল হোসেন ফকির, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আঃ রাজ্জাক জিহাদী, সাংবাদিক অধ্যাপক (অবঃ) মোঃ জয়নাল আবেদীন, মধুপুর রাণী ভবানী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আঃ বাছেদ ও শিক্ষার্থী মারিয়ম নাফিজ জাহা সহ অন্যান্য নেতৃ বৃন্দ।

বক্তাগন দেশে সম্প্রতি ঘটমান বিভিন্ন ঘটনার লোমহর্ষক বর্ননা তুলে ধরেন। এবং সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের দ্রুত শাস্তির দাবি জানান। এসময় বক্তারা প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সকলের প্রতি আহবান জানান।

মাগুরার মেম্বর রব্বেল আর নেই!

মাগুরার মেম্বর রব্বেল আর নেই!

স্টাফ রিপোর্টারঃ যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার ২ নং মাগুরা ইউনিয়ন পরিষদ ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বর রব্বেল আর নেই। 

তিনি আজ (৯ অক্টোবর)  দিবাগত রাত আনুমানিক ১১.৩০ মিনিটে স্ট্রোক জনিত কারণে নিজ বাড়িতে মৃত্যু বরণ করেন ( ইন্না-লিল্লাহ ----রাজিউন)। তার মৃত্যুতে গভীর ভাবে শোক প্রকাশ করেছেন যশোর -২ আসনের জাতীয় সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল ( অবঃ) অধ্যাপক ডাক্তার মোঃ নাসির উদ্দিন।

আসন্ন পৌর নির্বাচনে ৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে মাহাবুব আলম এর রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা

 আসন্ন পৌর নির্বাচনে ৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে  মাহাবুব আলম  এর রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা

নাহিদ পারভেজ,কলাপাড়া উপজেলা প্রতিনিধিঃ আসন্ন আগামী কলালাড়া পৌরসভা  নির্বাচনে ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে জনাব মাহাবুব আলম এর রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা। জনসেবার কারনে সাধারন মানুষের কাছে তিনি অত্যান্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি হিসেবে ব্যাপক সু-পরিচিতি লাভ করেছেন। কাউন্সিলর হয়েও তিনি সবসময় নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন সাধারণ মানুষের সেবায়। সাধ্য অনুযায়ী সাহায্য করেছেন সাধারণ মানুষের।

ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ছিলেন সাধারণ মানুষের সাথে। করোনার এই মহা দূর্যোগেও তিনি রয়েছেন তাদের পাশে। তিনি নিজেকে মানুষের সেবায় উৎসর্গ করে দিতে চান। স্থানীয় সাধারণ জনগন বলেন,আমরা আমাদের এই ৭নং ওয়ার্ডে মাহাবুব ভাইয়ের মতো একজন জনপ্রতিনিধি আমাদের পাশে চাই।

ইতোমধ্যে নতুন পুরান ভোটারদের মুখে  তার নামটি এলাকায় বেশি উচ্চারিত  হচ্ছে। সর্বোপরি মাদক, দূর্নীতি, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজীর বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবার মানুষিকতা নিয়ে-আগামী পৌর সভা নির্বাচনে জনগণের ভালবাসা ও দোয়া নিয়ে ৭নং ওয়ার্ডকে একটি মডেল ওয়ার্ড গড়ার প্রত্যয়ের আশা রয়েছে।

স্থানীয় জনগন জানান, তিনি আমাদের সকল বিপদ আপদে এগিয়ে আসেন। রাত দিন যখনই চাই আমরা তাকে পাশে পাই। আসন্ন নির্বাচনে মাহাবুব আলম ভাইকেই আমরা ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে আবার দেখতে চাই। দল মত নির্বিশেষে সকল শ্রেনী-পেশার মানুষ তার আচার- ব্যবহারে মুগ্ধ। তাছাড়া তিনি বিভিন্ন সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে মানুষের সেবা ও ব্যক্তিগত ভাবে এলাকার অসহায়-গরীরদেরকে সেবা অব্যাহত রেখেছেন। রাজনীতিতে রয়েছে তার বলিষ্ঠ অবদান। তাছাড়া তিনি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক সংগঠনের সাথে সংপৃক্ত রয়েছেন। 

কাউন্সিলর মাহাবুব আলম বলেন, কলাপাড়া  পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে আবার নির্বাচিত হলে। বঙ্গমাতা শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে উন্নয়নের রােল মডেল হিসেবে পরিনত করব, আরো বলে আমার  নির্বাচনী এলাকা ৭নং ওয়ার্ডকে একটি মডেল ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলবো।

গ্রেপ্তার প্রতারক কবি জাহিদুল ইসলাম দুর্লভ

 গ্রেপ্তার প্রতারক কবি জাহিদুল ইসলাম দুর্লভ

নিউজ ডেস্কঃ এলাকাসহ এলাকার বাহিরে সবার সাথে প্রতারণা করে আসছিল এই প্রতারক,আজ চেকের মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করে পতেঙ্গা থানার পুলিশ পতেঙ্গার যুবকদের চাকরি দেওয়ার নামে বিভিন্ন ভাবে প্রতারণা করে সে, নদী বাংলা মাল্টিপারপাস নামে একটি কোপারেটিভ টাকা হাতানোর ব্যবসা ছিল তার সেখান থেকে অনেক টাকা আত্মসাৎ করে সে দক্ষিণ পতেঙ্গা কাউন্সিলর প্রার্থী আলহাজ্ব আলমগীর হাসানের ঘনিষ্ঠ সহচর।

ডাকাতের কুড়ালের আঘাতে খুন হয়েছে জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী জনি

ডাকাতের কুড়ালের আঘাতে খুন হয়েছে জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী জনি


আনিস নাঈমুল ,কক্সবাজারঃ কক্সবাজারের ঈদগড় -ঈদগাঁহ সড়কের হিমছড়ি ঢালায় গতকাল ৮ অক্টোবর সকাল আনুমানিক  ৮টার সময় ডাকাতের হামলায় নিহত হয় কণ্ঠশিল্পী জনি দে ।

জনি দে রামু উপজেলার ঈদগড় ইউনিয়নের  ৪নং ওয়ার্ডের চরপাড়া এলাকার তপন দের পুত্র। সে এবারে এইচ, এস, সি পরীক্ষার্থী ছিলো।পাশাপাশি সে জনপ্রিয় একজন কন্ঠ শিল্পী।

জানা যায়, চট্টগ্রামের কয়েকটি গানের প্রোগ্রাম শেষে সকালে ঈদগাঁহ আসে। সেখান থেকে নিজ বাড়ী ঈদগড়ে  যাওয়ার পথে ডাকাত দলের কবলে পড়ে নির্মম মৃত্যুর শিকার হন। 

স্হানীয়রা জানান, সকাল ৮ টার সময় ঈদগাঁহ- ঈদগড় সড়কে চৌকিতে পুলিশ থাকার কথা থাকলেও কয়েকদিন ধরে সেই নিয়ম মানছে না পুলিশ।যার কারণেই এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে।


ঈদগাঁহ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি আসিফ হালিম জানান, ঈদগাঁহ থেকে ঈদগড় যাওয়ার পথে হিমছড়ি ঢালায় সিএনজিবাহী যাত্রীরা পাহাড়ি ডাকাত দলের আক্রমণের শিকার হন।ঘটনার পর পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

আঘাতের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জনি দের আঘাতটি অনেক গভীর। আঘাতটি আমাদের মনে হয়েছে এটা গুলি নয়, দারালো অস্ত্রের আঘাত হতে পারে বলে আমরা অনুমান করছি। তবে কিসের আঘাত সেটা এক্সপার্টরা সঠিক বলতে পারবে।

গতকাল বিকাল ২ ঘটিকায় ঈদগড় বাজারে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুস্টিত হয়েছে।বক্তারা বলেন, ডাকাতের ছিনতাই, হামলা, অপহরণ, খুন, গুমে এলাকাবাসীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে। তারা আর কোনো আপনজনকে হারাতে চাই না। 

বক্তারা অনতিবিলম্বে জড়িতদের গ্রেপ্তারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও ঈদগড়বাসী নিরাপত্তার জন্য ডাকাত প্রবণ ঢালায় একটি বিজিবি ক্যাম্প স্হাপনের দাবী জানানো হয়।

তার মৃত্যুতে পুরো ঈদগড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।