নন্দীগ্রামে মাদক কারবারি কর্তৃক পুলিশের সোর্স সন্দেহে যুবককে হত্যার চেষ্টা

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার নন্দীগ্রামে মাদক কারবারি কর্তৃক পুলিশের সোর্স সন্দেহে নিরীহ যুবককে হত্যা চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। ১১ই মার্চ বৃহস্পতিবার উপজেলা গোছাইল গ্রামে এই ঘটনা ঘটে জানাযায়, গোছাইল গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে মাদকের রমরমা ব্যাবসা চালিয়ে আসছে গ্রামের কতিপয় কয়েক জন যুবক। গত বৃহস্পতিবার (৪ই মার্চ) রাতে অভিযান চালিয়ে এদের মধ্যে, গোছাইল গ্রামের আবেদ আলীর ছেলে মাদক ব্যাবসায়ী আফজাল হোসেন ( ৩৬), মৃত সোবহান আলীর ছেলে আব্দুস সালাম (৪৬), জলিল এর ছেলে মামুন (২৮) কে মাদক সহ গ্রেফতার করে নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ। উক্ত আসামীরা জেল থেকে বের হয়ে এসে এলাকার সকল মাদক কারবারিরা একত্র হয়ে সেদিনের গ্রেফতারের ঘটনায় পুলিশের সোর্স সন্দেহে গোছাইল গ্রামের মকবুলের ছেলে নাজমুল হোসেন (৩০) কে মোবাইলে ফোন করে ডেকে নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে অমানবিক মারধর করে গোছাইল গ্রামের হাফিজারের ছেলে বুলবুল, মৃত সোবহানের ছেলে সালাম, সালামের ছেলে জাহাঙ্গীর, জলিলের ছেলে মামুন, আবেদ উদ্দিনের ছেলে আফজাল ও আতাইল চেঙ্গা পাঁচ পুকুরিয়া গ্রামের আজিজের ছেলে মিজান। তারা সকলেই এলাকার নামকরা মাদক ব্যাবসায়ী। পরে তাকে মূমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা সাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেয় গ্রামবাসী। উক্ত বিষয়ে গ্রামবাসী জানান, দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদক ব্যাবসা সহ নানান অপকর্ম করে আসছে এই সিন্ডিকেট। এদের অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। উক্ত বিষয়ে উপজেলা সাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ দিলরুবার সাথে কথা বললে তিনি জানান, ভিকটিমের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন করেছে, মাথার আঘাতের বিষয়ে সিটিস্ক্যান করতে হবে, এছাড়াও এক পা মারাত্তক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। উক্ত বিষয়ে নন্দীগ্রাম থানার ডিউটি অফিসার রেজাউল করিম রেজা জানান, খবর পেয়ে পুলিশ উপজেলা সাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে ভুক্তভোগী চিকিৎসাধীন যুবক নাজমুল হোসেন সাথে দেখা করেছে এবং তার পরিবারের সাথে কথা বলেছে। উক্ত ঘটনার সাথে জরিত সকলের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট