সিরাজগঞ্জ ভেওয়ামারা জোরপূর্বক জমি দক্ষল ও হামলার অভিযোগ উঠেছে

সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধি, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নে ভেওয়ামারা বাজারে জোড় পূর্বক জমি দক্ষল ও ঘরবাড়ী হামলা এবং মারপিটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে ও অভিযোগ সূত্রে যানা যায়, ভেওয়ামারা গ্রামের মৃত: রশিদ মল্লিক এর ক্রয়কৃত জমি তার ছেলেরা দীর্ঘদিন যাবত ভোগ দক্ষল করে আসছে।যাহা বিলনলচুঙ্গী মৌজাস্থ আরএস খতিয়ান নং ১২৩, আরএস দাগ নং ৫১, জমির পরিমান ৩২ শতকের কাতে ১১ শতক পশ্চিমাংশে উক্ত সম্পত্তি ১৯৯৩ সালে প্রকৃত মালিকের নিকট হইতে খরিদ করিয়া নিজেদের ভোগ দক্ষলে থাকা অবস্থায় কিছু অংশে ঘর উত্তোলন করিয়া ভাড়াটিয়ার নিকট ভাড়া প্রদান করে থাকেন।পর্বতীতে ওই বাড়ীর ভাড়াটিয়া বাড়ী ছেড়ে দিয়ে চলে যাওয়ায় বাড়ী ঘর খালি অবস্থায় আছে। উক্ত সম্পত্তি কিছু অংশ ফাকা থাকায় তাহাতে নতুন ভাবে ০৯/০৪/২০২১তারিখে সকল অনুমান ৭টার সময় ঘর উত্তোলনের জন্য মৃত রশিদ মল্লিকের ছেলে শহিদুল ইসলামেরা তিন ভাই গেলে রতনকান্দি ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের মোঃ দেলোয়ার হোসেন এর ছেলে মোঃ নূরে আলম (শুভ) দল বল নিয়ে অনধিকারে প্রবেশ করিয়া শহিদুল ইসলাম এর উপর এলোপাথারী ভাবে হামলা ও মারপিট শুরু করে এতে আহত হন মোছাঃ আরিফা বেগম, মোঃ শহিদুল ইসলাম সহ আরো অনেকে ।শহিদুল ইসলাম বলেন আমাদের আত্মচিৎকারে বাজারের লোকজন ছুটে আসলে শুভ তার দল-বল নিয়ে চলে যায়।আহত অবস্থায় আমাদের স্থানীয় লোকজন সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। আমার বাম হাতের হাড় ভেঙ্গে যায়। আমরা চিকিৎসা গ্রহণ করিয়া চিকিৎসার সনদপত্র গ্রহণ করি। তিনি আরও বলেন শুভ কিসের জন্য আমাদের উপর হামলা করল।দেশে কি কোন আইন কানন কিছুই নেই? শহিদুল ইসলাম এর ভাবি মোছাঃ আরিফা বেগম বলেন আমার ভাসুর কে যখন মেরে মাটিতে ফেলে এলোপাথারী ভাবে মারপিট করে আমি তখন চিৎকার করে ঠেকানোর জন্য গেলে আমার গলায় থাকা ১ ভরি ওজনের সোনার চেন শুভ টান দিয়ে ছিনিয়ে নেয়। তাতেও খ্যান্ত না হয়ে আমাকে চুলের মুঠি ধরে কাঠের বাটাম দিয়ে এলোপাথারী আঘাত করে। আমার শরিরে বিভিন্ন জয়গায় ছেলা ও ফুলা জখম করে আমি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সনদ গ্রহণ করি। শহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা মামলা করবো কিন্তু বিভিন্ন লোকমুখে হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে এবং উল্টো থানায় অভিযোগ করে পুলিশ দিয়ে আমাদের বাড়ী ঘর ছাড়া করেছে। আমরা এখন নিরুপায় হয়ে বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ এবং শুভোর ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি।তিনি আমাদের প্রতিনিধির কাছে আবেগে কেদে বলেন, আমরা কি দেশেরে নাগরিক না? দেশে কি কোন সঠিক বিচার নাই? আমরা কি এই ভাবে নির্যাতীত হব? উর্দ্ধতন কর্মকর্তার কাছে আমার আকুল আবেদন, তদন্ত পূর্বক আমি সঠিক একটা সমাধান চাই।

শেয়ার করুন

প্রকাশকঃ

অফিসঃ হাজী সিরাজুল ইসলাম সুপার মার্কেট, মোহাম্মদপুর মোড়, ছুটিপুর রোড, ঝিকরগাছা, যশোর।

পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট