শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত- ১

শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত- ১

সম্রাট হোসেন,  ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই কাউন্সিলর গ্রুপের সংঘর্ষে ৮ নং ওয়ার্ড কবিরপুরে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী শওকত আলীর ছোট ভাই আওয়ামীলীগ নেতা লিয়াকত আলী বল্টু নিহত হয়েছে। প্রতিপক্ষ কাউন্সিলর প্রার্থী বাবু খানের সমর্থকেরা এ হামলা চালায় বলে জানা যায়।  তারা উভয়ই নৌকার দলীয় প্রার্থী কাজী আশরাফুল আজমের সমর্থক বলে জানা যায়। এই ঘটনায় কবিরপুর এলাকায় থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। এই ঘটনার  পুরো শৈলকুপা পৌরসভা কে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে  দেওয়া হয়েছে। 

শৈলকুপা থানার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ঝিকরগাছার বিভিন্ন ইটভাটায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা, হিরা ব্রিকসের রিট নিয়ে জনমতে প্রশ্ন !

ঝিকরগাছার বিভিন্ন ইটভাটায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা, হিরা ব্রিকসের রিট নিয়ে জনমতে প্রশ্ন !

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার অন্তগত বিভিন্ন ইট ভাটার মাটি ও ইট বহন করার জন্য ব্যবহারিত টলি বা মাহিন্দ্রের কারণে, এলাকার রাস্তা নষ্ট হওয়ায় অভিযোগের উপর বুধবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতে ৪জনকে জরিমানা করেছে, উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আরাফাত রহমান। 

এসময় তিনি নাভারণ কুন্দিপুর হিরা ব্রিকস্রে কাগজপত্র দেখতে চাইলে, ভাটা কর্তৃপক্ষ তাকে হাইকোর্টের রির্টের কপি দেখান। তবে জনমতে একটি প্রশ্ন উঠেছে আদেও হাইকোর্টের রির্টের কপিটা সঠিক কিনা।

উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আরাফাত রহমান বলেন, নাভারণ টু বায়সা সড়কে ইট ভাটার মাটি ও ইট বহন করার জন্য, ব্যবহারিত টলি বা মাহিন্দ্রের কারণে এলাকার রাস্তা নষ্ট হওয়ায়, অভিযোগের উপর ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালতে সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর আওতায় এনে, ৪জন টলি বা মাহিন্দ্র ড্রাইভারকে ১হাজার ৯শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে এবং ইট ভাটা মালিকদেরকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। তারা যেন আর টলি বা মাহিন্দ্রে গাড়িতে করে মাটি আনা নেওয়া না করে। মাটি আনতে হলে ট্রাক ব্যবহার করতে হবে।

হিরা ব্রিকস্রে সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, আমি হিরা ব্রিকস্রে কাগজপত্র দেখেছি। কর্তৃপক্ষ আমাকে হাইকোর্টের রির্টের একটি কপি দেখিয়েছেন। যেহেতু তাদের নিকট হাইকোর্টের রিট রয়েছে। সেহেতু ওখানে হাইকোর্টের রিট বা নিষেধাজ্ঞা উপক্ষো করা যায় না।

লাকসাম ৫০ একর জমিতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ধানের ছাড়া রোপণ

লাকসাম ৫০ একর  জমিতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ধানের ছাড়া রোপণ

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ লাকসাম উপজেলার সবচেয়ে বড় কৃষি মাঠ হিসেবে পরিচিতি উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের নোয়াপাড়া- ছনগাঁও ব্লকের ডিজিটাল পদ্ধতিতে জমির আইল উঠিয়ে যৌথ খামার ব্যবস্থাপনা যান্ত্রিক চাষাবাদ, শ্রমিক ছাড়াই রাইস ট্রান্সপার ডিজিটাল (ধানের চারা রোপন) মেশিনের সাহায্যে দ্বিতীয় বারের মতো ৫০ একর জমিতে ধানের চারা রোপনের মধ্যদিয়ে কৃষকরা দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি শুভ সূচনা করেন। 
ডিজিটাল কৃষি জমির মাধ্যমে ওই অঞ্চলের কৃষকরা এ সুফল পেয়ে মহা খুশি। ১৩ জানুয়ারি বুধবার  ২০২১ নোয়াপাড়া- ছনগাঁও ব্লকে ট্রান্সপার ডিজিটাল মেশিনে (ধানের চারা রোপন) পর্যবেক্ষন ও পরিদর্শন করেন  লাকসাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৈয়দ শাহিনুর ইসলাম, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা (কুমিল্লা) আলী আহমেদ, লাকসাম উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি অফিসার এ.টি.এম কামরুল আহ্সান, এ.এস.এম আবদুল হাই প্রমুখ। 

 যৌথ কৃষি খামার ও কমিউনিটি এন্টারপ্রাইজ ব্যবস্থাপনার সভাপতি মোঃ সাইফুল ইসলাম চৌধুরী মেম্বার প্রতিবেদককে  জানান, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, লাকসামের গর্ব মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী, কান্দিরপাড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান  মোঃ ওমর ফারুকসহ বিশেষ করে মাননীয় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এমপির আন্তরিক প্রচেষ্টায় বৃহত্তর কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার একমাত্র ডিজিটাল পদ্ধতিতে কৃষি চাষাবাদের বৃহত্তম প্রকল্পটি কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের নোয়াপাড়া-ছনগাঁও গ্রামে- এ অঞ্চলের কৃষকরা মাননীয় মন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞ। 
এই কৃষি প্রকল্পটি ৫০ একর জমিতে চাষাবাদ হওয়ায় এ অঞ্চলের কৃষকরা লাভ ও সুবিধা গ্রহণ করায় আমি এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে সরকার ও মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের প্রতি চির কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

শৈলকূপায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-৬,আহত-৩

শৈলকূপায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-৬,আহত-৩

সম্রাট ঝিনাইদহঃ ঝিনাইদহের শৈলকুপায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ জন নির্মান শ্রমীকের মৃত্যু হয়েছে।  এসময় আহত  হয়েছে আরো ৩ জন। আহতদের ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 
আহতদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থায় আশংকাজনক বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। উপজেলার মদনডাঙ্গা নামক স্থানে সন্ধা সাড়ে ৬ টার দিকে  এ দূর্ঘটনা ঘটে। 
নিহত ও আহতরা সকলেই নির্মান শ্রমিক বলে জানা গেছে। নিহতদের বাড়ী ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কলমনখালী এলাকায় বলে স্থানীয়রা জানান।
জানা যায়, কুষ্টিয়ার বৃত্তিপাড়া থেকে একটি বাড়ীর ছাদ ঢালাই এর কাজ শেষ করে ১০ জন নির্মান শ্রমিক নিজ বাড়ী ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কলমনখালীর উদ্দেশ্যে নসিমন গাড়ীতে করে ঢালাই ম্যাশিন নিয়ে যাচ্ছিলো। পথিমধ্যে মহাসড়কের মদনডাঙ্গা নামক স্থানে পৌছলে কুষ্টিয়াগামী সেনা কল্যান সংস্থার একটি সিমেন্ট বোঝাই ট্রাকের সাথে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এসময় ঘটনাস্থলেই খন্ড - দ্বিখন্ডিত হয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়।

মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচন বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ইশতিহার ঘোষণা

মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচন বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ইশতিহার ঘোষণা

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা    
মোংলা পোর্ট পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব মো: জুলফিকার আলী নির্বাচনী ৫৬ দফা ইশতিহার ঘোষণা করেছেন। বুধবার দুপুরে পৌর শহরের মাদ্রাসা রোডস্থ ধানের শীষ প্রতীকের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার এই নির্বাচনী ইশতিহার ঘোষণা করেন। তার ঘোষিত ইশতিহারের মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য রয়েছে, পৌরসভার চলমান স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়ন করে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দিয়ে ফ্রি চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা, পৌরসভা হতে নদীর এপার-ওপার ২৪ ঘন্টা এ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু, পৌর কর্তৃপক্ষের অধীনে ফ্রি/নামমাত্র ফি নিয়ে উন্নতমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু, বেকারত্ব দূরীকরণে বিভিন্ন ধরণের প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা, পৌর এলাকার মসজিদের ইমাম/খতিবদের বেতন পৌরসভা হতে মাসিক হারে প্রদাণ, এলাকাভিত্তিক পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিয়োগ ও প্রত্যেক বাড়ী হতে ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার, বিবাহ, জন্মদিনসহ সভা-সেমিনারের জন্য শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত আধুনিক সভাকক্ষ করা, পৌর কিচেন মার্কেট, মৎস্য মার্কেট, উন্নতমানের কসাইখানা নির্মাণ, মোংলা নদীর পাড়ে সাংস্কৃতিক চর্চায় রবীন্দ্র সরোবরের ন্যায় উম্মুক্ত মঞ্চ তৈরি, প্রতিটি ষ্ট্যান্ডে খাবার পানি সরবরাহ, শহরের নিরাপত্তায় প্রতিটি মহল্লা সিটি ক্যামেরার আওতায় আনা, পৌর মন্দির ও শ্বশ্মানঘাট নির্মাণ, নদীর ওপারে বাসষ্ট্যান্ডে সুন্দরবন জাদুঘর নির্মাণ, আধুনিক পৌর ভবন নির্মাণ, বুড়িরডাঙ্গা এরাকায় রাস্তা, কবরস্থান করা, হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট তৈরি করে পৌরবাসীকে বিনিয়োগে উৎসাহিত করে শহরকে আধুনিক করা এবং পর্যটনবান্ধব পৌর শহর গড়ে তোলা। ইশতিহার ঘোষিত সংবাদ সম্মেলনে তার সাথে স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় তিনি বলেন, দীর্ঘ ১০ বছর মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র হিসেবে পৌরবাসীর সেবক হয়ে সেবা প্রদাণ করেছি। ব্যক্তি জীবনের সুখ-শান্তি বিসর্জন দিয়ে সর্বদা দলমত ও ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধে থেকে জরাজীর্ণ এবং জোয়ারের পানিতে তলিয়ে থাকা পৌরসভাকে সকলের সহযোগীতায় একটি স্মার্ট সিটিতে উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি। মেয়র হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণকালে দুই কোটি নয় লাখ বাষট্টি হাজার চারশত একাত্তর টাকা দেনা ছিল পৌরসভা। সেই সকল দায় দেনা পরিশোধ করে পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত করা হয়েছে। পৌর তহবিলে এখন তিন কোটি টাকার উর্ধে রিজার্ভ রয়েছে।
সর্বশেষ পৌরবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, নির্বাচন একটি উৎসবমুখর পরিবেশ। কিন্তু বর্তমানে সেই পরিবেশ নেই। নির্বাচনের সুবাদে সকলের ঘরে ঘরে যাওয়া সম্ভব হয়নি বিভিন্ন বাধার কারণে। এজন্য আমি সকলের কাছে আন্তুরিকভাবে মর্মাহত ও দু:খ প্রকাশ করছি। পৌরসভার সকল ভোটারদের কাছে তাদের মূল্যবান ভোট চেয়ে তাকে বিজয়ী করার আহবাণ জানান তিনি।

মনিরামপুরের খেদাপাড়া ইউনিয়নে আলোচনার শীর্ষে সম্ভব চেয়ারম্যান প্রার্থী সরদার ইকবাল হোসেন

মনিরামপুরের খেদাপাড়া ইউনিয়নে আলোচনার শীর্ষে সম্ভব চেয়ারম্যান প্রার্থী সরদার ইকবাল হোসেন

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।যশোরের মনিরামপুর উপজেলার খেদাপাড়া ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড খেদাপাড়া গ্রামের মৃত্য সাহেব আলী সরদারের চার ছেলে মেয়ের মধ্যে তৃতীয় জন হলেন, সরদার ইকবাল হোসেন। ছোট বেলা থেকে অন্যায়ের প্রতিবাদী একজন মানুষ। যার কারণে তখন থেকেই সকলের কাছে ভালোবাসায় সিক্ত হন তিনি। সরদার ইকবাল হোসেনের দাদা মরহুম আবুল হোসেন সরদারও ছিলেন, তৎকালীন বৃহত্তর খেদাপাড়া ওয়ার্ডের মেম্বার। মেম্বারের কার্যক্রম ও সমাজিক কর্মকান্ডে সবার কাছে ছিল প্রশাংসার পাত্র। দাদার মূখে বঙ্গবন্ধুর জীবনির গল্প শুনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে অনুপ্রানিত হয়ে বেড়ে উঠা সরদার ইকবাল হোসেনের, স্বপ্ন জাগে  মানুষের পাশে দাড়িয়ে কিছু করার। 

তিনি ২০০৪ সালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা কালে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করে অল্প দিনের মধ‍্যে, রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে ওঠেন। ২০০৭ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত  একটানা ১৩ বছর ওয়াড আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে এসেছেন সরদার ইকবাল হোসেন। দলের জন্য নিবেদিত এই নেতা সবার ভালবাসার মানুষ হয়ে উঠে। নিজ ওয়াড পেরিয়ে ইউনিয়নের প্রতিটা গ্রামের পাড়া মহল্লার মানুষের কাছে অতি প্রিয় পাত্র হয়ে উঠেছে। তাই ইউনিয়ন বাসীর দাবীর মুখে হাসি ফোটাতে আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচন করবেন বলে জনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।
 
ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভব‍্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী বর্তমান ইউনিয়ন কৃষকলীগের সহ-সভাপতি  সরদার ইকবাল হোসেন, বঙ্গবন্ধু ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাতীর জনকের কন্যা জননেেত্রী শেখ হাসিনার, হাতকে শক্তিশালী করতে কাজ করতে চান।  এজন্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে ইউনিয়ন বাসীর পাশে দাড়িয়ে সকলের সেবা প্রদানে কাজ করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন। করোনা মহামারী সহ বর্তমান শীতে ইউনিয়নের শীতার্তদের মধ্যে শীত বস্ত্র বিতরন করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে ইউনিয়নবাসীর প্রতিটা বাড়ি বাড়ি যাওয়া অব্যাহত রেখেছেন। ইউনিয়নটির কেউ অসুস্থ্য থাকলে স্ব-শরীরে উপস্থিত হয়ে সার্বিক খোঁজ খবর নেওয়া ও কেউ মারা গেলে ছুটে যান তিনি। এছাড়া যুব ও কিশোরদের আনন্দ মুখী করতে পর্যায়ক্রমে  ফুটবল,জার্সি, ক্রিকেট সামগ্রী বিতরণ করেছেন একাধিকবার। সামাজিক কর্মকান্ডে ভূমিকা রেখেই চলেছেন সরদার ইকবাল হোসেন। 

সরদার ইকবাল হোসেন, প্রকৃত ভোটের মাধ্যমেই নির্বাচিত হবার নীতিতে বিশ্বাসী হওয়ায় ভোটারদের কাছেই যাচ্ছেন তিনি। আগামী আসন্ন ইউনিয়ন নির্বাচনে সরদার ইকবাল হোসেনকে নৌকার প্রার্থী করা হবে, এমন প্রত্যাশা ইউনিয়নের রাজনৈতিক নেতাদের । সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, আমরা এবার যুবক চেয়ারম্যান প্রাথী সরদার ইকবাল হোসেনকে, চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলে খুব খুশি হবো। আমরা চাই তার মতো লোক চেয়ারম্যান হোক। সে চেয়ারম্যান হলে আমরা ইউনিয়ন বাসী সকল ধরনের সহযোগিতা পাবো। সরদার ইকবাল হোসেন আমাদের বিপদ আপদে ছুটে আসে। সব ধরনের সহযোগিতা করে থাকে। করোনা পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি যাকে কাছে পাওয়া গেছে সে আমাদের নেতা সরদার ইকবাল হোসেন ।

নির্বাচন বিষয় সরদার ইকবাল হোসেনের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, দল যদি আমাকে মনোনয়ন দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম‍্যান পদে নির্বাচন করার সুযোগ দেয় তাহলে ইউনিয়নবাসীর মনের আশা পূর্ণ করে, জননেত্রীর উন্নয়ন আমার ইউনিয়নবাসীর মাঝেও ছড়িয়ে দিবো।

কাহালু পৌর নির্বাচন, পরিবেশ শান্ত রাখতে পুলিশ তৎপরতা

কাহালু পৌর নির্বাচন, পরিবেশ শান্ত রাখতে পুলিশ তৎপরতা

মোঃ সবুজ মিয়া বগুড়া প্রতিনিধিঃআগামী ৩০ জানুয়ারি কাহালু পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সার্বিক পরিবেশ শান্ত রাখতে পুলিশের তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। পৌর এলাকার সার্বিক তথ্য সংগ্রহে কাজ করছেন বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। জানা গেছে সম্প্রতি পৌর এলাকার ৩ নং ওয়ার্ডে মিছিল করা নিয়ে দু-কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশের হস্তক্ষেপে সেখানে তেমন কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

এক প্রার্থীর মিছিলে অংশ নেওয়া সমর্থকদের নাস্তার টাকার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে  কাহালু রেল স্টেশন এলাকায় স্থানীয় কিশোরদের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটলে পুলিশ তাৎক্ষনিকভাবে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। প্রার্থীদের পক্ষে মিছিল বের হলেই অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ থাকেন সতর্কাবস্থায়। প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের উত্তেজনা পূর্ণ এলাকা কাহালু পৌরসভার ২ ওয়ার্ড সাগাটিয়া, ষ্টেশন এলাকা ও ৩ নং ওয়ার্ডের পালপাড়া-জামতলা এলাকা পুলিশের কঠোর নজরদারীতে রয়েছে। এছাড়াও পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত টহলে রাখা হয় পুলিশকে। বিশেষ করে সংঘাত পূর্ণ চিহিৃত এলাকায় সব-সময় মোতায়েন থাকেন পুলিশ। পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে এখানে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী খুবই তৎপর।

কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, পৌর এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বিধি মোতাবেক যা করণীয় তাই করা হবে। কেউ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটনার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোরভাবে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা রিটার্ণিং অফিসার মোঃ মাছুদুর রহমান সম্প্রতি আইন-শৃঙ্খলা মাসিক সভায় বলেছেন পৌর নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ করতে বিধি মোতাবেক সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নওগাঁয় বিপুল পরিমান নেশার ইনজেকশান সহ আটক -৩

নওগাঁয়  বিপুল পরিমান নেশার ইনজেকশান সহ  আটক -৩

রহমতউল্লাহ  আশিকুর জামান নুর,প্রতিনিধি,নওগাঁঃননওগাঁয় বিপুল পরিমাণ নেশা জাতীয় ইনজেকশনসহ তিন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‍্যাব-৫ (জয়পুরহাট র‍্যাব)।
মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারী) রাতে সদর উপজেলার শিবপুর বাইপাস ব্রিজের মোড় এলাকা থেকে এক হাজার ৪৩৫ পিস বুপ্রেনরফিন ইনজেকশনসহ তাদের আটক করা হয়।

আটককৃত মাদক ব্যবসায়ীরা হলো- নওগাঁ সদর উপজেলা সিংবাছা গ্রামের ইয়াছিনের ছেলে অটোরিকশা চালক বিল্লাল হোসেন (৪০), নাটোর জেলার চক বৈদ্যনাথপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪৩) ও সূর্যবাড়ী গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান সরদারের ছেলে দুলাল সরদার (৩৮)।

র‍্যাব-৫ জয়পুরহাটের কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপারএমএম মোহাইমেনুর রশিদ জানান, গোপন সংবাদে র্যাবের সদস্যরা নওগাঁ সদর উপজেলার শিবপুর বাইপাস ব্রিজের মোড় এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় একটি অটোরিকশা থামিয়ে সন্দেহমূলক তল্লাশি করা হয়। পরে মাদক ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম ও দুলাল সরদারসহ অটোরিকশার চালক বিল্লাল হোসেনকে আটক করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রফিকুল ইসলাম ও দুলাল সরদার দিনাজপুর, নওগাঁ, বগুড়া ও জয়পুরহাট জেলার বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘদিন যাবৎ নেশা জাতীয় মাদকদ্রব্য বুপ্রেনরফিন ইনজেকশন অবৈধভাবে সংগ্রহ করে মাদকসেবী ও মাদক কারবারীদের কাছে সরবরাহ করে আসছিল বলে স্বীকার করেছে।
তিনি বলেন, রফিকুল ইসলাম পাকশী এবং সান্তাহার রেল স্টেশন এলাকায় প্রায় ২২ সদস্যের একটি চুরি ও ছিনতাইকারী দলের নেতৃত্ব দিয়ে আসছে।

দিনাজপুরে পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি কার্য্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন

দিনাজপুরে পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি কার্য্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন

মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি : আসন্ন দিনাজপুর পৌরসভার নির্বাচনে সরকারী দলের অযোগ্য প্রার্থীকে বিজয়ী করতে এবং জনগনের ভোটাধিকার কেড়ে নিতে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের এনে রাখা হয়েছে শহরের বিভিন্ন আবাসিক হোটেল এবং সরকারী-সেরকারী রেষ্ট হাউজ ও দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি। এ বিষয়ে পুলিশ প্রশাসন এবং গোয়েন্দা সংস্থাগুলো সর্ম্পূন্ন অবগত থাকলেও কোনো ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছেন না।

১৩ জানুয়ারী বুধবার সকালে দিনাজপুর জেলা বিএনপি কার্য্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে   উপরোক্ত অভিযোগ করেছেন পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন,সারাদেশসহ দিনাজপুরে বিএনপি একটি সুসংগঠিত জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল হওয়ায় এদলের প্রার্থীকে দিনাজপুর পৌরসভায় বার বার ভোটাররা মেয়র নির্বাচিত করছে। একারনে সরকারী দলের ঈর্ষার কারন হয়ে দাড়িয়েছে বিএনপি ও তার প্রার্থী সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। বিএনপির প্রার্থীকে হারানোরর্  জন্য বিএনপির দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ী বাড়ী পুলিশ হানা দিচ্ছে,আতংকিত নেতাকর্মীরা ভোটের প্রচারাভিযানে অংশ নিতে পারছেনা। এছাড়াও সরকারী দলের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ভোটকেন্দ্র দখল,ব্যালট বাক্স ও ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের মাধ্যমে ফলাফল পাল্টানোর মহাপরিকল্পনা করছে তারা।  

তিনি বলেন,অন্যদিকে আগামী ১৬ জানুয়ারী ভোটের দিনজনগনের ভোট ডাকাতি করতেই মরিয়া হয়ে মাঠে নামানো হবে সরকারী দলের বহিরাগত সন্ত্রাসীদের এবং এরদায় চাপানো বিএনপির নেতাকর্মীদের ঘাড়ে। ইতি মধ্যে জনগনের ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়ার জন্য সকল ধরনের মহা পরিকল্পনা শেষ করেছে সরকারী দলের নেতাকর্মীরা। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন,পুলিস প্রশাসনের কাছে আমার দল এবং পৌরবাসীর দাবী অনতি বিলম্বে বহিরাগত এই ভোট ডাকাতদের নির্বাচনের পূর্বেই গ্রেফতার করে অবাধ এং নিরপেক্ষ নির্বাচনের পথ সুগম করুন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,দিনাজপুর জেলা বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য রেজিনা ইসলাম,যুগ্ম আহবায়ক যথাক্রমে এ্যাড.মোফাজ্জল হোসেন দুলাল,খালেকুজ্জামান বাবু,হাসানুজ্জামান উজ্জল,আখতারুজ্জামান জুয়েল,মো: মোকাররম হোসেন। এছাড়াও বীরমুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার মোকসেদ আলী মঙ্গোলিয়া, অধ্যাপক কামরুজ্জামান, সামসুজ্জামান চৌধুরী খোকা ও বোচাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি'র সা: সম্পাদক শফিকুল ইসলামসহ অন্যান্যরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

ঝিকরগাছায় প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিররণ

ঝিকরগাছায় প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিররণ

মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ যশোরের ঝিকরগাছায় প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিররণ করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় ঝিকরগাছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

ঝিকরগাছার বল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, টাওরা উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দোস্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঝিকরগাছা বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে এবং  অধ্যাপক ডাঃ রওশন আরার সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল অব. অধ্যাপক ডাঃ মোঃ নাসির উদ্দিন। 
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুবনা তাক্ষী, ঝিকরগাছা উপজেলা শিক্ষা অফিসার ইসমত আরা পারভীন প্রমুখ।

মধুপুরে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কামরুলের বিরুদ্ধে লক্ষ লক্ষ টাকার ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ

মধুপুরে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের  কামরুলের  বিরুদ্ধে লক্ষ লক্ষ টাকার ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ

মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের মধুপুরে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-আঞ্চলিক শাখার অফিস সহকারী কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে লক্ষ  লক্ষ টাকার ভর্তি বাণ্যিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। মধুপুর কম্পিউটার এসোসিয়েশন এর সভাপতি ও সম্পাদকের লিখিত অভিযোগের বিবরণী থেকে জানা যায়, মধুপুরে যে সকল শিক্ষার্থী উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্থ বিভিন্ন কোর্সে ভর্তি হওয়ার জন্য বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠান হতে অনলাইনে আবেদন করেন সেসকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা শুধুমাত্র অফিস সহকারী কামরুল এর মাধ্যমে অথবা তার নির্ধারিত আইটি প্রতিষ্ঠান হতে আবেদন করে না তাদের আবেদন ফরম পরবর্তীতে বাতিল করা হয়। অফিসে গিয়ে এর প্রতিকার চাইলে কামরুল ইসলাম তাদেরকে বিভিন্ন অযুহাত দেখিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবী করে। 

যেহেতু উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি প্রক্রিয়া অনলাইন সিস্টেম, সেহেতু বিভিন্ন কম্পিউটার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অনলাইনে ভর্তি ফরম পূরণ করেন। এটাই বর্তমান সরকারের তথ্যপ্রযুক্তিগত অনলাইন সেবা। যাতে প্রত্যেকেই যার যার সুবিধামত সময়ে নিজের জায়গা থেকে কিংবা বিভিন্ন তথ্য প্রযুক্তি সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হতে রেজিষ্ট্রেশন করতে পারে। ঠিক সেই সুবিধাজনক সময়ে উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, মধুপুর উপ-আঞ্চলিক অফিসের অফিস সহকারী কামরুল ইসলাম তার সহযোগীদের নিয়ে ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের উল্টো পথ দেখাচ্ছেন এবং নির্ধারিত ভর্তি ফি এর চেয়ে অনেক বেশী টাকা হাতিয়ে নেওয়া এবং শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করছেন। তারা শিক্ষার্থীদেরকে অফিস অথবা তাদের নির্ধারিত কম্পিউটার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ব্যতিত আবেদন করলে তা গ্রহণযোগ্য হবে না বলে ভয়ভীতি দেখান। ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা বাইরে আবেদন করতে চাইলে আবেদন বাতিল হবে, টাকা পেমেন্ট হবে না, ভর্তি বাতিল হলে আমরা দায়ী না ইত্যাদি নানারকম হুমকি দিয়ে থাকেন শিক্ষার্থীদের, এমনকি তাদের এ ধরণের ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের নিকট নির্ধারিত ভর্তি ফি'র অতিরিক্ত টাকা জমা দিতে বলেন। এতে করে অনেক অসহায় শিক্ষার্থীরা বিপাকে পরে যান। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে প্রকাশ্যে শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত টাকা আদায় করার মত দুর্নীতি খুবই ন্যাক্কারজনক একং হয়রানি মূলক। 

অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় মধুপুর উপ-আঞ্চলিক অফিস এর অফিস সহকারী কামরুল ইসলাম এবং তার সহযোগীদের সাথে যোগাযোগ না করে যে সকল শিক্ষার্থীরা যথা নিয়মে আবেদন ফরম পূরণ করে সেগুলো তাদের কাছে গ্রহণযোগ্য হচ্ছে না। এমতাবস্থায় যে সকল শিক্ষার্থীরা ইতিমধ্যে তার মাধ্যমে আবেদন করেছেন তাদের আবেদন শতভাগ সঠিক বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। যার শতভাগ তথ্যপ্রমাণ মধুপুর কম্পিউটার এসোসিয়েশন এর নিকট সংরক্ষিত আছে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে দাবী করেন।

মধুপুরে যে সকল আইটি প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার্থীরা অনলাইনে আবেদন করেছে সেসকল আইটি প্রতিষ্ঠানের পূরণকৃত অনলাইন আবেদন ফরম কামরুল ইসলাম বাতিল করেছে বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর আগেও আবেদন বাতিল হওয়ার ভয়ভীতি দেভিয়ে অনেক আইটি প্রতিষ্ঠান থেকে মোটা অঙ্কে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন আইটি ব্যবসায়ীরা। জানা যায়, অফিস সহকারী কামরুল ইসলাম সার্টিফিকেট বিক্রি, বই নেওয়ার সময় শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে টাকা আদায়, ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে  লক্ষ লক্ষ টাকা দুর্নীতি করে অন্য ব্যক্তির নামে মধুপুর শহরে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলেছেন। 

এ ব্যাপারে অফিস সহকারী কামরুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বিভিন্ন অযুহাত দেখিয়ে ফোন কেটে দেন।

টাংগাইল জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাগণদের সাথে রিসোর্স টিচারদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

টাংগাইল জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাগণদের সাথে রিসোর্স টিচারদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

ডা.এম.এ.মান্নান,টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:
বাংলাদেশ রিসোর্স টিচার্স এসোসিয়েশন(বিআরটিএ)
টাংগাইল জেলা শাখার উদ্যোগে টাংগাইল জেলা শিক্ষা অফিসার সহ কর্মরত বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সাথে টাংগাইল জেলার সকল রিসোর্স টিচারদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

আজ বুধবার,১৩ জানুয়ারি ২০২১ খ্রি.সকাল ১১.০০ টায় টাংগাইল শহর প্রানকেন্দ্রে অবস্হিত ফুড গার্ডেনে বিআরটিএ জেলা সভাপতি আলম হোসেন এর সভাপতিত্বে ও জেলা সেক্রেটারি আপেল মাহমুদ সুজনের পরিচালনায় মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

মতবিনিময় সভায় উপস্হিতি ছিলেন জেলা সহকারী পরিদর্শক মো.আবুল খায়ের মোহাম্মদ সবুক্তগীন,জেলা সহকারী পরিদর্শক মো.ইমরান হাসান,জেলা ট্রেনিং
কো অর্ডিনেটর মো.আ.মান্নান, সহকারী পরিদর্শক মোছা.বিথী।

 আরও উপস্হিতি ছিলেন বিআরটিএ এর কেন্দ্রীয় সভাপতি মো.আমিনুল ইসলাম,কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মো.তৌহিদুল ইসলাম রুকন সহ টাংগাইল জেলার নাগরপুর ও সখিপুর উপজেলার কর্মরত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের রিসোর্স টিচার বৃন্দ।

জেলা শিক্ষা অফিসার লায়লা খানম মহোদয় মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিতি থাকার কথা থাকলেও সরকারি কাজে ব্যস্ত থাকায় তিনি মতবিনিময় সভায় যোগদান করতে পারিনি পরে জেলা শিক্ষা অফিসার মহোদয়ের সাথে জেলা শিক্ষা ভবনে মতবিনিময় ও সৌজন্য সাক্ষাত শেষে আজকের মতবিনিময় সভার কাজ শেষ করা হয়।
 
উল্লেখ্য যে, প্রত্যন্ত অঞ্চলে অপেক্ষাকৃত কম সুবিধাসম্পন্ন 
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পড়ারোধ, পাশের হার বৃদ্ধি,  বাল্যবিবাহ রোধ, ইংরেজি, বিজ্ঞান ও গণিত বিষয়ে শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি কাটিয়ে মেধাবী করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে অধীন সেকেন্ডারী এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (সেসিপ) ১৪২ টি উপজেলায় ১০০০ জন রিসোর্স টিচার নিয়োগ দেয়।বর্তমানে কর্মরত আরটিগণ অনেক দক্ষতার সহিত অত্যন্ত সুনামের সাথে তাদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

পটিয়া পৌর নির্বাচনে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন ফরম নিলেন মমতাজ বেগম

পটিয়া পৌর নির্বাচনে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন ফরম নিলেন মমতাজ বেগম

সেলিম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টারঃ-আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী পটিয়া পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে। এ নির্বাচন উপলক্ষে ১৩ জানুয়ারি বুধবার সকালে ১,২,৩ নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন ফরম নিলেন মমতাজ বেগম। সে মুক্তিযোদ্ধা সাবেক মেম্বার আমিনুল হকের মামাতো বোন এবং পটিয়া পৌরসভা জাতীয়  শ্রমিকলীগের  সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফি'র বড় বোন। মমতাজ বেগমের স্বামী একজন সরকারি সাবেক কর্মকর্তা এস এম নুরুল আলম। মমতাজ বেগম এর দুই ছেলে ঢাকায় প্রতিষ্টিত ব্যাবসায়ি। ছোট ছেলে এনামুল করিম ইমন ঢাকা উওর এর  আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোটের মঞ্চ বিষয়ক সম্পাদক এবং  বড় ছেলে মোঃ রেজাউল করিম একজন শিল্প উদ্যাক্তা। মনোনয়ন ফরম নেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক মেম্বার আমিনুল হক, পটিয়া পৌরসভা জাতীয় শ্রমিকলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফি, নুর জাহান বেগম, মাহমুদা আক্তার লাভলী ,শাহিদা আক্তার, জান্নাতুল ফেরদৌস। উল্লেখ্য মমতাজ বেগম পটিয়া পৌরসভার সুচক্রদন্ডী ২ নং ওয়ার্ড  মল্লিকা বাপের বাড়ির মরহুম সরু মিয়ার বড় মেয়ে এবং মাষ্টার সেলিম খান এর পুরাতন বাড়ি। মমতাজ বেগম সকলের সহযোগিতা দোয়া কামনা করেছেন। তিনি বিজয়ী হলে পরিকল্পিত আধুনিক মডেল আদর্শ ওয়ার্ড গড়ে তুলতে সক্ষম হবেন বলে আশাবাদী।

নওগাঁ মান্দার বিষ্নপুরে অজ্ঞাত এক ব্যাক্তির গলা কাটা লাশ!

নওগাঁ মান্দার বিষ্নপুরে  অজ্ঞাত এক ব্যাক্তির গলা কাটা লাশ!

মোঃ রবিউল সরদার,মান্দা,নওগাঁঃ নওগাঁ জেলার অন্তর্গত মান্দার ১৪ নং বিষ্নপুর ইউনিয়নের দক্ষিন পূর্বে অবস্থিত মিঠাপুর এলাকায় অবস্থিত আত্রাই নদীর পশ্চিম পাড়ে মান্দা,আত্রায়, রাণীনগর ত্রিমুখি জায়গা সামাদের মৌর খ্যাত এলাকায় ভুট্টার ক্ষেতে  আজ ১৩ জানুয়ারি বুধবার, অজ্ঞাত  ব্যক্তির গলা কাটা  লাশের সন্ধান মিলেছে ।
 ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে দেখা যায় হাজার হাজার উৎসুক জনতা ভিড় করে লাশটিকে এক নজর দেখার জন্য ভুট্টার ক্ষেতে  । প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে যতদুর জানা যায় গলা কাটা ব্যক্তির নাম আব্দুস সাত্তার, বাড়ি মান্দা নুরল্লাবাদ, সে একজন সাধারণ নিম্নবিত্ত পরিবারের লোক, কাজ কর্ম তেমন করতে পারেনা। আরেক প্রত্যক্ষ্য দর্শির বরেতে জানা যায় লোকটির তেমন কারো সাথে কোন শত্রুতা নেই বললেই চলে। এমন একজন সাধারণ লোকের মৃত্যুতে অত্র মান্দা, আত্রাই ও রাণীনগরের সাধারন মানুষের মধ্যে একটি আতঙ্ক বিরাজ করছে। এই এলাকায় যেন প্রসাষনিক ভাবে সকল প্রকার শান্তি ফিরে আসে এটাই এলাকার সকল জনগণের কামনা।

মণিরামপুর মেয়র প্রার্থী মাহমুদুল হাসান সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন

মণিরামপুর মেয়র প্রার্থী মাহমুদুল হাসান সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, যশোরের মণিরামপুর উপজেলায় পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে মণিরামপুরে কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন, মণিরামপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও দলীয় মেয়র প্রার্থী আলহাজ্জ্ব অধ্যক্ষ কাজী মাহমুদুল হাসান।

প্রেসক্লাবের সভাপতি ফারুক আহামেদ লিটনের সভাপতিত্বে ও সম্পাদক মোতাহার হোসেনের পরিচালনায় আয়োজিত এ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের তরুণ নেতা অ্যাড. বশির আহমেদ খান, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক আমজাদ হোসেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী জলি আক্তার ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি  দেবাশিষ সরকার বাবু। 

মতবিনিময়ে মেয়র প্রার্থী আলহাজ্জ্ব অধ্যক্ষ কাজী মাহমুদুল হাসান বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত এবং জনগনের উৎসাহে আমি আবারও পৌরবাসীর সেবা করার জন্য নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। বিগত ৫টি বছর মেয়র হিসেবে সততার সাথে দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করেছি। আমি কতটুকু সফল সেটা জাতির বিকেক হিসেবে আপনারা অবগত আছেন। আমি বিশ্বাস করি মিডিয়া যেদিকে থাকে জনমত সেই দিকে যায়। তাই আপনাদের বস্তুনিষ্ট লেখনির মাধ্যমে সহযোগিতা কামনা করছি। সেই সাথে আমার রাজনৈতিক সাথী, সহযোদ্ধা ও শুভাকাঙ্খীসহ সকলের কাছে সহযোগীতা কামনা করছি। নির্বাচিত হতে পারলে মণিরামপুর পৌরসভার যে সমস্ত অসমাপ্ত কাজ রয়েছে এবং পরিকল্পনা রয়েছে সেগুলো বাস্তবায়ন করার প্রতিশ্রতি ব্যক্ত করছি। 

বর্ষিয়ান রাজনৈতিক নেতা মাহমুদুল হাসান তাঁর রাজনৈতিক ক্যারিয়ার বর্ণনান্তে  বলেন, আমি ১৯৭০ সাল থেকে জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছি। উপজেলা আওয়ামীলীগের গঠিত প্রথম কমিটিতে শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক, এরপর পর্যায়ক্রমে সাংগঠনিক সম্পাদক, সহসভাপতি, আহবায়ক ও বর্তমান পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। আমি পৌর মেয়র নির্বাচিত হয়ে মাননীয় প্রতিমন্ত্রীর সহযোগিতা ও পৌরবাসীর আর্শীবাদে এ পৌরসভাকে ১ম শ্রেণিতে উন্নীত করে, আধুনিক পৌরসভার দ্বিতল ভবনের জন্য ৪ কোটি ৩৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ আনার মাধ্যমে টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে। পৌরসভার নিজস্ব জমি ছিল ১৫ শতক, কিন্তু আমি পৌর এলাকায় ১ একর ৮২ শতক জমি ক্রয় করেছি। সর্বমোট ৭৫ কোটি ১০ লক্ষ টাকার উন্নয়ন বরাদ্দের মধ্যে বাস্তবায়ন ও চলমান ৬২ কোটি টাকা এবং অবশিষ্ট ১৩ কোটি ১০ লক্ষ টাকা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আমার আমলে মাননীয় প্রতিমন্ত্রীর সহযোগিতায় সরকারী বরাদ্দের পরিমান ৭৫ কোটি ১০ লক্ষ টাকা এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ১০০ কোটিসহ সর্বমোট ১৭৫ কোটি ১০ লক্ষ টাকার উন্নয়ন কাজ হয়েছে এবং কিছু কাজ চলমান রয়েছে। তিনি দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হতে পারলে পৌরসভার আয়তন বৃদ্ধি, পৌর পার্ক, মিনি স্টেডিয়াম নির্মানসহ বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনার ঘোষনা দেন। পাশাপাশি তিনি প্রেসক্লাবের উন্নয়নে বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহণ করবেন বলে সাংবাদিকদের আশ্বস্থ করেন।

নির্বাচিত হয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চান কাউন্সিলর প্রার্থী আজাদ

 নির্বাচিত হয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চান কাউন্সিলর প্রার্থী আজাদ

সেলিম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টারঃ-আওয়ামী পটিয়া পৌরসভার সদস্য মো: আজাদ আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ড থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে কাউন্সিলর নির্বাচন করে বিজয়ী হয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চান। তিনি একজন সফল  ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক পরিববারের সন্তান মোঃ আজাদ এলাকার একজন তরুণ সমাজকর্মী, পরিচ্ছন্ন ও উদীয়মান রাজনীতিক দলের মনোনয়নের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। তিনি বলেন,পটিয়া পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডে অতীতে আওয়ামী লীগ থেকে ওয়ার্ড কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়নি। এবার আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত হয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চান। এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে জানান,  ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আজাদ ১৪ ফেব্রুয়ারী পটিয়া পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে তার এলাকার সমস্যা, সম্ভাবনা ও কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, দলের দুঃসময়ে যারা আওয়ামী লীগকে গালিগালাজ করেছে আজ তারাই নব্য আওয়ামী লীগার সেজে দলের বদনাম কুড়াচ্ছে। নিজ এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা তুলে ধরছেন কাউন্সিলর প্রার্থী আজাদ। তিনি বলেন, পটিয়ার মাটি ও মানুষের নেতা জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী এমপি ৩ নং ওয়ার্ডে অনেক উন্নয়ন কাজ করলেও আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা তার সুফল পায়নি শুধু দলীয় কাউন্সিলরের অভাবে।তিনি বলেন সব ঠিক থাকলে পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে৩ নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করে বিজয়ী হওয়ার আশাবাদী। মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত এবং হয়রানি মুক্ত সেবা প্রদান মাদক মুক্ত আদর্শ ওয়ার্ড গড়ে তুলতে তিনি নির্বাচনে 

অংশ নিয়েছেন।বলেন, কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করার লক্ষ্য নিয়ে বিগত ৫ বছর এলাকার ঘরে ঘরে গিয়ে মানুষের খোঁজ খবর নিয়েছি। যার যা প্রয়োজন সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছি। করোনাকালীন সময়ে, ঈদ ও পূজার সময় মানুষকে সাহায্য সহযোগিতা করেছি। গত ৫ বছর হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী এমপি  উন্নয়ন কাজকে এগিয়ে নিতে সরকারি বরাদ্দের পাশাপাশি তিনি ব্যক্তিগতভাবেও এলাকার উন্নয়নে রাস্তাঘাট তৈরি, মেরামত ও এলাকার দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে আর্থিক সহযোগিতা করেন।এলাকার সমস্যা বিষয়ে জানান, ৩ নং ওয়ার্ডের প্রধান সমস্যা মাদক ও ইয়াবা। অশিক্ষিত নেতৃত্বের কারণে এলাকার মানুষ সালিশ বিচারের নামে বছরের পর বছর হয়রানির শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেন। তাছাড়া সামান্য বৃষ্টি হলেই এলাকার অনেক জায়গা পানির নিচে ডুবে যায়। এলাকায় কোন সরকারি হাসপাতাল বা স্বাস্থ্যকেন্দ্র নাই। দলের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচিত হলে এলাকায় একটি কমিউনিটি ক্লিনিক বা স্বাস্থ্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিব।

সামাজিক সমস্যার কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ইয়াবা ও কিশোর গ্যাং এই এলাকার প্রধান সমস্যা। আমাদের অনুধাবন করতে হবে হাইব্রিড ও অন্যদল থেকে আসা লোকেরা দলের দুঃসময়ে আবারও দলত্যাগ করবে। এরা হলো সুবিধাবাদী। শীতের মৌসুমী পাখির মতন দলের মনোনয়ন পেলে নির্বাচনের পর এলাকায় ইয়াবা কারবারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ও সামাজিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ৩ নং ওয়ার্ডকে একটি আদর্শ শিক্ষা বান্ধব ওয়ার্ডে পরিণত করবো। আজাদ বলেন, আমার ওয়ার্ডে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ঐতিহ্যবাহী ১টি সরকারি ও বেসরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং একটি কলেজ আছে। কারগরি শিক্ষার জন্য একটি কারিগরি বিদ্যালয় থাকলে ভাল হতো।

তরুন রাজনীতিক আজাদ বলেন দলের দুঃসময়ে পটিয়া পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করেন। বিএনপি সরকারের দমন-পীড়ন উপেক্ষা করে দলের কর্মীদের সাহস ও অনুপ্রেরণা যোগান।বৈশ্বিক দুর্যোগ করোনা কালে ৩ নং ওয়ার্ডে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছেন।জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এলাকার মানুষের পাশে থাকায় এলাকার লোকজনও তাকে আগামী নির্বাচনে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চায়।সমাজকর্মী ও রাজনীতিক মো আজাদ জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর উন্নয়ন কাজে জড়িত থাকার ৩ নং ওয়ার্ডের প্রতিটি ঘরে ঘরে গিয়ে তিনি মানুষের সমস্যা ও চাহিদা জানতে পেরেছেন।তিনি বলেন, জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হলে এলাকায় বিশ্বস্ত ও যোগ্য দলীয় কাউন্সিলর প্রয়োজন।

তিনি বলেন, আমার অভিভাবক হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর পরামর্শ ও নির্দেশ মত আমি আমার আমার ওয়ার্ডকে একটি আদর্শ ও মডেল ওয়ার্ডে পরিণত করতে চাই।

বিগত দিনে দলের প্রতি যে ত্যাগ স্বীকার করেছি আশা করি আমার নেতা হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী এমপি, দলের উপজেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ,ক,ম, সামশুজ্জামান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশিদসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ তা আন্তরিকতার সাথে মূল্যয়ন করে আমাকে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করার জন্য মনোনীত করবেন। আমি মনোনয়ন পেয়ে  ইনশাআল্লাহ বিজয়ী হয়ে দলের ও নেতৃবৃন্দের সম্মান অক্ষুন্ন রাখবো। তিনি সকলের সহযোগিতা দোয়া আশীর্বাদ কামনা করেন।

পটিয়া পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি'র দলীয় নমিনেশন ফরম জমা দিলেন নজরুল

পটিয়া পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি'র দলীয় নমিনেশন ফরম জমা দিলেন নজরুল

সেলিম চৌধুরী স্টাফ রিপোর্টারঃ- চট্টগ্রামের প্রথম শ্রেণীর পটিয়া পৌরসভার নির্বাচন ১৪ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচন বিএনপি'র ৪জন মেয়র পদে প্রার্থী দলীয় ফরম গ্রহণ করে।১২ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার বিকেলে বিএনপি'র পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র  মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাএদলনেতা বিএনপি'র নেতা  আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম দলীয় ফরম পুরান করে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি'র আহবায়ক আবু সুফিয়ান কাছে জমা প্রদান করেন। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি আনোয়ার ইসলাম মিয়া,উপজেলা যুবদল সিনিয়র সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম, সাবেক ছাএদল নেতা আবদুল মোমেন প্রমুখ। বিষয়টি  নিশ্চিত করেন দক্ষিণ জেলা বিএনপি আহবায়ক আবু সুফিয়ান।তিনি বলেন পটিয়া পৌরসভার নির্বাচনে বিএনপি'র ৪জন মেয়র মনোনয়ন প্রত্যাশী দলীয় ফরম গ্রহণ ও পুরাণ করে জমা দেন। ৪ জনের নাম দলের কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডের কাছে পাটানো হবে দলীয় হাইকমান্ড এদের মধ্যে একজন'কে মনোনয়ন দেবে। পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি'র দলীয়  মেয়র মনোনয়ন প্রত্যাশী আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম জানান,বিএনপি'র চেয়ারপার্সন সাবেক সফল  প্রধানমন্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পরিপূর্ণ মুক্তি এবং বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া'কে দেশের ফিরিয়ে আনার লক্ষ্য আন্দোলন সংগ্রামের অংশ ছাড়াও জনগণের ভোট ও ভাতের অধিকার নিশ্চিত করতে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছেন বলে জানান। নজরুল ইসলাম  দাবি করেন বিএনপি আন্দোলন সংগ্রামে মাঠের কর্মী হিসেবে মেয়র পদে দল আমাকে মনোনয়ন দেবে বলে  আমি আশাবাদী। 

জাগো বীর আকরাম হোসাইন

জাগো বীর আকরাম হোসাইন

উমরের মতো বীর জাগো
লাঞ্ছিত বাংলা রক্ষা করো.
লাঞ্ছিত মা-বোনেরা
ধর্ষণ কারিদের ফাঁসিতে ঝোলা।

একটা ঝোলে দশটা থামবে
বাংলাদেশ থেকে তবেই.
ধর্ষণ কারিদের রুখা যাবে
তুমি জাগো ধর্ষণ রুখ।

আর কতো চিৎকার শুনবো
৭১তোরের ধর্ষণ কারিদের.
২০ সালে রুখবো
জাগো জাগো জাগো।

উমরের মতো বীর জাগো
লাঞ্ছিত বাংলা রক্ষা করো।

বড়লেখায় নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)'র ২৫০ জন নারী পুরুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

বড়লেখায় নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)'র ২৫০ জন নারী পুরুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

আকরাম হোসাইন মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) বড়লেখা উপজেলা ব্যবস্থাপনায় ২৫০ সুবিধাবঞ্চিত নারী পুরুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

বড়লেখা সদর ইউনিয়ন পরিষদের হলরুমে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) বড়লেখা উপজেলা শাখার উপদেষ্টা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী মুক্তাদির হোসেন মিসবাহ'র পিতা মরহুম ডাঃ তোফাজ্জল হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তারই অর্থায়নে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

নিসচা বড়লেখা উপজেলা আহ্বায়ক তাহমীদ ইশাদ রিপনের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আইনুল ইসলামের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি'র বক্তব্য রাখেন বড়লেখা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তাজ উদ্দিন, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রেহানা বেগম হাসনা, সদর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন, নিসচা উপদেষ্টা কাউন্সিলর জেহীন সিদ্দিকী,বড়লেখা মানবসেবা সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম শুভ, শুভাকাঙ্ক্ষী অপুজিৎ সহ প্রমুখ।

আসন্ন চৌগাছার পৌরসভা নির্বাচনের পদপ্রার্থী জসিম উদ্দীনকে নিয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালাচ্ছে

আসন্ন চৌগাছার পৌরসভা নির্বাচনের পদপ্রার্থী জসিম উদ্দীনকে নিয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার  চালাচ্ছে

আব্দুল জব্বার, স্টাফ রিপোর্টার।।যশোরের চৌগাছা উপজেলার জনপ্রিয় ব্যাক্তি আসন্ন চৌগাছা পৌরসভা মেয়র নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী জসিম উদ্দীনকে নিয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চলছে। 

আসন্ন চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনের মনোনয়ন প্রার্থী জসিম উদ্দীন, বিগত কয়েকবছর সর্বস্তরের জনগনের সেবায় সব সময় নিজেকে নিয়োজিত রেখে এসেছেন। শুধু নিজের ইচ্ছায় চৌগাছা উপজেলার হতদরিদ্র, অসহায় মানুষের আস্থা অর্জন করে তাদের কথা রাখতেই চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। বিগত করোনাকালে উপজেলায় নিম্নবিত্ত মানুষের পাশে দাড়ানোতে তার ভুমিকা অপরিসীম ছিলো। 

দেশপ্রেম ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালিত করে জননেত্রী শেখ হাসিনার, ডিজিটাল ও দরিদ্রমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে যখনই সে পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন পদপ্রার্থী, ঠিক সেই  সময় একটি কুচক্রী মহল উঠে পড়ে লেগেছে তার এই অর্জিত জনপ্রিয়তা ও আস্থা নষ্ট করার জন্য। 

সম্প্রতি মনোনয়ন ফরম পূরণের সাথে সাথে একটি কুচক্রী মহল সামাজিক যোগাযোগ  মাধ্যমে ও বিভিন্ন অনুমোদনহীন অবৈধ অনলাইন নিউজ পোর্টালে, ভুয়া তথ্য ও লেখা প্রদর্শন করে সাধারণ জনগনের মধ্যে এই জনপ্রিয় নেতার সম্পর্কে বিভিন্ন বিভ্রান্তিকর অবস্থা সৃষ্টি করছে। 

অন্যদিকে শুধু মাত্র প্রিয় নেতা জসিম উদ্দীনের বিরুদ্ধে অপপ্রচার নয়, চলছে আরও পদপ্রার্থীর বিরুদ্ধে একই ধরনের অপপ্রচার। আর এই অপপ্রচারের জন্য কুচক্রী মহল অনুমোদনহীন অবৈধ নিউজ পোর্টাল ও অনলাইন পোর্টাল গুলোকে অস্ত্র হিসেবে বেছে নিয়েছেন। 

পদপ্রার্থী জসিম উদ্দীন জানান, আমার বিরুদ্ধে একটি কুচক্রী মহল এই ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে। ইর্ষাকাতর হয়ে আমার জনপ্রিয়তা নষ্ট করাই তাদের মূল উদ্দেশ্য। কে বা কারা এই ধরনের কর্মকান্ড করছে আমি জানি না। তবে এ ব্যাপারে আমি জনগনের উদ্দেশ্যে বলবো, এসব উদ্ভট, ভুয়া সংবাদ, অপপ্রচারে কান না দিয়ে নিজ চক্ষু দিয়ে বিচার করুন।

বড়লেখায় ইসলামী ছাত্রশিবিরের শীতবস্ত্র উপহার সামগ্রিক বিতরণ

বড়লেখায় ইসলামী ছাত্রশিবিরের শীতবস্ত্র উপহার সামগ্রিক বিতরণ

আকরাম হোসাইন মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা পৌরসভা শাখার উদ্যোগে গরীব অসহায় ও মেধাবী ছাত্রদের মাঝে শীতবস্ত্র উপহার সামগ্রিক প্রদান করা হয়। 
উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন গণমানুষের প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী,বড়লেখা উপজেলার আমীর জনাব এমাদুল ইসলাম,বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ইসলাম ছাত্রশিবির বড়লেখা উপজেলা শহর শাখার সংগ্রামী সভাপতি আব্দুস সামাদ,
এছাড়া ও  উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ইসলামী ছাত্রশিবির বড়লেখা পৌরসভার সভাপতি আব্দুস সবুর,এছাড়া বড়লেখা শহর ও পৌরসভার অনেক দায়িত্বশীলবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন