শৈলকুপায় অস্ত্র,অপহরণ ও ৮টি মাদক মামলার আসামী ইয়াবাসহ গ্রেফতার

শৈলকুপায় অস্ত্র,অপহরণ ও ৮টি মাদক মামলার আসামী ইয়াবাসহ গ্রেফতার





সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা ( ঝিনাইদহ) সংবাদদাতাঃ

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় অস্ত্র,অপহরণ ও ৮টি মাদক মামলার আসামী তালুক মন্ডলকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত তালুক উপজেলার হাকীমপুর ইউনিয়নের খুলুমবাড়ী গ্রামের মৃৃত গোলাম মন্ডলের ছেলে।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে খুুলুমবাড়ী এলাকায় মাদক বেচাকেনা চলছে এমন খবর পেয়ে শৈলকুপা থানার এস আই সামসুর রহমান ও এএস আই  সাহাবুদ্দিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালায়। সেসময় ১০৬পিচ ইয়াবাসহ তালুক মন্ডলকে গ্রেফতার করে।

শৈলকুুপা থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম জানান, ১০৬পিচ ইয়াবাসহ তালুক মন্ডলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলার প্রস্তুুতি  চলছে। তিনি আরো বলেন, তালুকের বিরুদ্ধে ১টি অস্ত্র মামলা,১টি অপহরণ মামলা ও ৮টি মাদক মামলা রয়েছে।

নাটোর লালপুর মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন

নাটোর লালপুর মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন





রাজশাহী ব্যুরো 
সারাদেশের ন্যায় নাটোরের লালপুরে জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে।    
বৃহস্পতিবার (১৬জুলাই) সকালে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। উপজেলা প্রশাসন ও বন বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মুল বানীন দ্যুতির সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্'িত ছিলেন নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল। 
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্তিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এসকেন্দার মির্জা, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক গোলাম কাওছার, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও বিলমাড়ীয়া ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু, নাটোর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুর রউফ সরকার, উপজেলা বন কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম, নাটোর জেলা তাঁতীলীগের যুগ্ন সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম বাঘা, সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন রিপন, সাবেক সাংসদ শহীদ মমতাজ উদ্দীনের পুত্র শামীম আহম্মেদ সাগর সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।  উক্ত বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির আওতায় লালপুরে ৪০,৩২৫ টি বিভিন্ন ফলজ, ঔষধী ও বনজ বৃক্ষ রোপন করা হবে।

হরিরামপুর উপজেলায় বন্যার পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে

হরিরামপুর উপজেলায় বন্যার পানি অস্বাভাবিক হারে  বৃদ্ধি পাচ্ছে







আব্দুর রাজ্জাক,হরিরামপুর(মানিকগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ
হরিরামপুর উপজেলায় পদ্মা ও যমুনা নদীর পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে বন্যার পানি বিপদ জনক হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে, গত ২৪ ঘন্টার মধ্যে মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর উপজেলার বন্যার পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।এ ছাড়া মানিকগঞ্জের সাত উপজেলার মধ্যে  নিম্নাঅঞ্চল গুলো হলো দৌলতপুর ঘিওর শিবালয় ও হরিরামপুর এ অঞ্চলে বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়ে নতুন নতুন এলাকায় পানি ঢুকেছে। দেখা দিয়েছে নানা সমাস্যা যেমন বিশুদ্ধ পানি ও খাদ্য সংকট।হরিরামপুরের বেশির ভাগ ঘর বাড়িতে পানি উঠায় গৃহপালিত পশু পাখি নিয়ে বিপাকে পড়েছেন এসব এলাকার মানুষ। হরিরামপুর উপজেলায় পদ্মা নদীতে ও এখন পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, শিবালয়ের পাটুরিয়া এলাকায় যমুনা নদীর সঙ্গে এই নদীর সংযোগ রয়েছে। পাটুরিয়া থেকে হরিরামপুরের রামকৃষ্ণ পুর, হারুকান্দি লেছড়াগঞ্জ, আজিম নগর ওধূলসূড়া ইউনিয়নের কয়েকটি নীচু অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এ ছাড়া কয়েকটিএলাকায় পানির স্রোতে পাকা এবং কাচা রাস্তা ধসেগেছে এবং হরিরামপুর উপজেলায় ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপাতালের রাস্তা ও থানায় যাওয়া রাস্তায় পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। অনেক মানুষের চলাচল কষ্ট হচ্ছে। রাস্তা ঘাট তলিয়ে পানি বন্দি হয়ে পড়েছে হাজার হাজার মানুষ। এ সময় স্থানীয় এলাকাবাসী বলেন একদিকে করোনা ভাইরাস এর মধ্যে আয় রোজগার বন্ধ অন্য দিকে বন্যার পানিতে কোনদিকে আসা যাওয়া করা যাচ্ছে না, স্থানীয় সরকার
ও জনপ্রতিনিধি দের নিকট সাহায্যে কামনা করছে এই সমস্ত এলাকাবাসী।

জীবন বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চেয়েছেন চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির পরিবার

জীবন বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চেয়েছেন চৌগাছা উপজেলা  ছাত্রলীগ সভাপতির পরিবার

চৌগাছা,যশোর প্রতিনিধিঃ 
একের পর এক হত্যাপ্রচেষ্টা এবং হত্যাপ্রচেষ্টা মামলার আসামিদের অব্যাহত হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে যশোরের চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম হোসেনের পরিবার। সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং স্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করতে প্রয়োজনে স্বপরিবারে রাজনীতি থেকে দূরে থাকতে চান আজীবন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় এই পরিবারটি।
বৃহস্পতিবার প্রেস ক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলনে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাশাপাশি পরিবারের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনে ঘোষনা দিয়ে রাজনীতি থেকে দূরে থাকার কথাও জানিয়েছেন ইব্রাহিম হোসেনের বড় ভাই জাহিদুর রহমান মিলন। 
সংবাদ সম্মেলনে জাহিদুর রহমান মিলন বলেন, আমাদের পুরো পরিবার সরাসরি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িত। আমার বাবা আবদুল খালেক চৌগাছা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ১নং ওয়ার্ডের সভাপতি। আমি নিজে চৌগাছা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ও ছোট ভাই ইব্রাহিম হোসেন চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। 
তিনি বলেন, ২০১৫ সালের ১৬ জুলাই আমার ভাই ইব্রাহিম হোসেন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ২১ মামলার আসামী,গোয়েন্দা পুলিশের তালিকাভূক্ত মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ি শামীম রেজা ওরফে গলাকাটা শামীম আমাদেরকে প্রতিপক্ষ ভেবে একাধিকবার সন্ত্রাসী হামলা,অত্যাচার-নির্যাতন শুরু করে।
লিখিত বক্তব্যে মিলন দাবী করেন সন্ত্রাসী শামীমকে ভয় করেনা এমন কোনো লোক উপজেলাতে নেই। অত্যাচার ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রমান হিসেবে শামীম রেজা ও পারভেজের সকল মামলার কাগজপত্র সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন মিলন। তিনি বলেন গালকাটা শামীম শুধু সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করেই ক্ষ্যান্ত থাকে না । স্বার্থে ব্যাঘাত ঘটলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও বিভিন্ন সন্মানী লোকের সম্বন্ধে বাজে বাজে মন্তব্য করে তাদের সন্মানহানী করে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও প্রভাব বজায় রাখতে অর্থ উপার্জনে মাদক ও অস্ত্রের ব্যবসা করে শামীম। শামীমের মাদকের ব্যবসা তার ছোট ভাই ফয়সাল দেখাশোনা করে বলেও জানান তিনি।
২০১৭ ও ২০১৯ সালে গাল কাটা শামীম বাহিনী একাধিকবার আমার ভাইয়ের ওপর হামলা চালায়। তাকে প্রাণে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে বারবার ব্যর্থ হয় সন্ত্রাসী শামীম। আমার ভায়ের উপর সন্ত্রাসী হামলায় ভাইকে না পেয়ে আমার বৃদ্ধ বাবাকে মেরে ডান হাত ভেঙ্গে দেয় তারা। 
জাহিদুর রহমান মিলন বলেন, সর্বশেষ চলতি বছরের ১০ জুলাই শামীমের নেতৃত্বে বেড়গোবিন্দপুরের পারভেজসহ ১৩ জন সন্ত্রাসী আমার ভাই ও তার বন্ধু মিঠুনের ওপর হামলা চালায়। সে হামলায় শামীমের দায়ের কোপে আমার ভায়ের পায়ের রগ কেটে যায়। তারা দুজনই বর্তমানে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এ ঘটনায় আমি মামলা করি। 
তিনি বলেন, এই মামলা থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে আমার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে শামীম বাহিনী। আমার পুরো পরিবারটি ধ্বংস করার পাঁয়তারা চালানো হচ্ছে। আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছি। আমরা এই সন্ত্রাসী শামীম,পারভেজসহ এই সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে মুক্তি চাই।
সংবাদ সন্মেলনে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ইব্রাহিমের বাবা আবদুল খালেক, মা জহুরা বেগম, বোনের ছেলে সজল আহমেদ, প্রতিবেশী মাহিন বিশ্বাস প্রমুখ।
নিজেদের এবং পরিবারের নিরাপত্তার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে মিলন।

হবিগঞ্জে কোরবানীর পশুর হাটে ক্রেতা শূন্য লোকসানে ইজারাদার ও ব্যবসায়ী

হবিগঞ্জে কোরবানীর পশুর হাটে ক্রেতা শূন্য লোকসানে ইজারাদার ও ব্যবসায়ী



লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জে পশুর হাটে ক্রেতা শূন্য লোকসানে ইজারাদার ও ব্যবসায়ী
আর কিছুদিন পরেই মুসলিম ধর্মলম্বীদের বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। করোনার প্রাদুর্ভাবে এবার হবিগঞ্জের শহর ও গ্রামে ছোট বড় পশুর হাট জমে উঠলেও ক্রেতা শুন্য। গরুর দামও কম। এতে বিক্রেতারা চিন্তায় থাকলেও কম দামে গরু কিনতে পেরে খুশি অনেক ক্রেতা।

হবিগঞ্জে সবচেয়ে পুরনো পশুর হাট কেশবপুর গরুর বাজার। গেল বছরও এই হাট অনেকটা দেশী ও ভারতীয় গরুর দখলে থাকলেও এ বছর দেখা যায় দেশি গরু, তাও তুলনামুলকভাবে কম। দুর দুরান্ত থেকে আসা ব্যবসায়ীরা ক্রেতার অভাবে গরু বিক্রি করতে না পেরে হতাশা হয়েই ফেরত যেতে হয়। করোনায় বিক্রেতা থাকলেও নেই ক্রেতা।

প্রতি বছর সিলেট ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার গরু আসে এ হাটে। এখান থেকে দেশের বিভিন্ন জেলার ব্যবসায়ীরা গরু কিনে থাকেন। সপ্তাহে সোমবার হাটে গরু বেচা কেনা হয়। কিন্তু এ বছর করোনার কারণে আগ্রহ দেখাচ্ছে না ক্রেতা-বিক্রেতারা। ক্রেতার অভাবে গরু বিক্রি করতে না পেরে হতাশার কথাই জানান কয়েকজন ব্যবসায়ী। ভালো দামে গরু বিক্রি করতে পারছেনা তারা। আগামীতে হয়তো এ পেশা বাদ দিতে হবে-এমনটাই জানান ব্যবসায়ীরা।

বাজারের ইজারাদার জানান, বাজারটি এক বছরের জন্য সরকারিভাবে ডেকে নেওয়া হয়েছে। করোনার কারণে সরকারের নির্দেশনায় আমরা দুই মাসের বেশি সময় এই পশু হাটটি বন্ধ রেখেছিলাম। হাট বন্ধ থাকায় আমাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। ঈদেও গরু বিক্রি না হওয়ায় লোকসানে জর্জরিত হতে হচ্ছে। তবে সরকারের কাছে ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার দাবীও জানান তিনি।

করোনায় ক্রেতা বিক্রেতার যাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার সে জন্য মাইকিং করা হচ্ছে। এছাড়া পশুরহাটটি সার্বক্ষণিক প্রশাসনের তদারকিতে আছে। শেষ হবে মহামারি করোনা আসবে জনমনে স্বস্তি ঘুরে দাঁড়াবে ব্যবসায়ীরা এমন প্রত্যাশাই সকলের।

কুমিল্লার মুরাদনগরে নোঙর'র মুজিব জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে তিতাস নদীর তীরে বৃক্ষরোপণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে নোঙর'র মুজিব জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে তিতাস নদীর তীরে বৃক্ষরোপণ




শাহ আলম জাহাঙ্গীর
ব্যুরো চিফ, কুমিল্লা

কুমিল্লার  মুরাদনগর রামচন্দ্রপুরে তিতাস নদীর তীরে আজ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয় ,এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন নোঙর বাংলাদেশ মুরাদনগর শাখার সকল সদস্যবৃন্দ ,

নদী বিষয়ক সামাজিক সংগঠন নোঙর'র বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সুমন সামস্  এক ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে এই বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন নোঙর'র বাংলাদেশ কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য - অসিত বরণ সরকার ( শংকর ) ও নোঙর'র বাংলাদেশ মুরাদনগর শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক মো: অলি উল্লাহ ভূঁইয়া। 

উপস্থিত সকলকে উদ্দেশ্য করে অসিত বরণ সরকার ( শংকর ) বলেন, 
বাংলাদেশ নদী মাতৃক দেশ ,আর আমাদের সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য নদী ও প্রকৃতির সৌন্দর্য রক্ষা করা, তাই আমরা আজ মুজিব জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে রামচন্দ্রপুরে তিতাস তীরে এবং অধ্যাপক আবদুল মজিদ কলেজে  প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার অংশ হিসেবে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীর আয়োজন করি এবং ভবিষ্যতে আমাদের এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে | 

অন্যান্যদের মধ্যে  উপস্থিত ছিলেন ,অনিক মিয়া,আকাশ সাহা ,সনেট সরকার, সবুউল্লাহ, আশিক মিয়া, প্রণয় দাস, সৈকত সরকার, ইয়াছিন আরাফাত, রাকেস, শাওন,আবদুল,   হাসান প্রমুখ |

কুমিল্লার হোমনায় মুজিব জন্মশতবর্ষে বৃক্ষ রোপণ

কুমিল্লার হোমনায় মুজিব জন্মশতবর্ষে বৃক্ষ রোপণ




শাহ আলম জাহাঙ্গীর 
ব্যুরো চিফ, কুমিল্লা

কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় আজ বৃহস্পতিবার  মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপন করা হয়। 
সারাদেশে ১ কোটি চারা রোপণের প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার  অংশ হিসেবে হোমনা উপজেলা প্রশাসন ও বন বিভাগের উদ্যোগে ইউএনও তাপ্তি চাকমার সভাপতিত্ত্বে প্রধান অতিথি  হিসাবে কুমিল্লা-২(হোমনা-তিতাস)এর সংসদ সদস্য  সেলিমা আহমাদ মেরী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছ লাগানোর কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। 
 হোমনা উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে একটি বৃক্ষ রোপনের মাধ্যমে  কর্মসূচির সূচনা করা হয়।এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হোমনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেহানা বেগম,  উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাছিমা আক্তার, উপজেলা বনকর্মকর্তা মো. ফজলে রাব্বি সরকারসহ উপজেলার অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনলাইন ক্লাসে বাঁধা ইন্টারনেট পরিসেবা

অনলাইন ক্লাসে বাঁধা ইন্টারনেট পরিসেবা




জবি প্রতিনিধিঃ
গত ২৫ জুন ইউজিসির বৈঠকে সিদ্ধান্তের পর অনলাইন ক্লাস শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)। অনলাইনে ক্লাস হলেও হবে না পরীক্ষা জানানো হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে। তবে অনলাইন ক্লাসের সফলতায় সবচেয়ে বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে ইন্টারনেট পরিসেবা। তারপরও প্রশাসনের উদ্যোগকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থী গ্রামে অবস্থান করছে। এমন অবস্থায় ভালো ইন্টারনেট সংযোগ পাওয়া তাদের জন্য কষ্টসাধ্য। সাধারণত অনলাইন ক্লাসগুলো জুম কিংবা গুগল মিটের মাধ্যমে হয়ে থাকে যার জন্য প্রয়োজন উচ্চগতিসম্পন্ন ইন্টারনেট ব্যবস্হা। এছাড়াও বেশিরভাগই শিক্ষার্থী মধ্যবিত্ত আর নিম্নবিত্ত পরিবারের হওয়ায় ইন্টারনেট পরিসেবা নিশ্চিত করাও তাদের জন্য কষ্টসাধ্য।


এর আগে বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে অনলাইন ক্লাস শুরুর বিষয়ে জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ক্লাসের ভিডিও ইউটিউব ও ফেসবুকে আপলোড করতে হবে যেন শিক্ষার্থী যেকোনো সময় তা দেখতে পারে। ক্যাম্পাসে ক্লাস শুরু হলে ৩ সপ্তাহ সময় দেয়া হবে, সেসময় ব্যবহারিক ক্লাস হবে। এরপর একসাথে অনুষ্ঠিত হবে দুইটি সেমিস্টারের ফাইনাল পরীক্ষা।


পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ১৪ ব্যাচের শিক্ষার্থী মিথিলা দেবনাথ ঝিলিক বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে গ্রামে থাকা শিক্ষার্থীরা ইন্টারনেট সেবা কতটা পাবে তা নিশ্চিত না, আর তার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে ইন্টারনেট প্যাকেজ এর অধিক মূল্য যা অনেকেটা ক্লাস কার্যক্রমে সবার অংশগ্রহণে বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে।


পরিসংখ্যান ১৫ ব্যাচের শিক্ষার্থী সজল বলেন, এটা ভালো যে আমরা পড়াশোনার মধ্যে থাকবো, সময়টা অযথা নষ্ট হবে না। আর যারা ক্লাসে অংশ নিতে পারছে না তারা সময়সুবিধা অনুযায়ী ইউটিউব থেকে ক্লাস করে নিতে পারবে।


এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মীজানুর রহমান বলেন, শিক্ষামন্ত্রনালয়,ইউজিসি, এটুআই মিলে কাজ করছে, যাতে করে সবাই অনলাইন ক্লাসের আওতায় আসতে পারে। আর এটা যাতে, দ্রুত কার্যকর হয় এজন্য আবেদন করা হয়েছে।

মোংলায় সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ শিকার করার সময় ইউপি সদস্যের ছেলে আটক

মোংলায় সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ শিকার করার সময় ইউপি সদস্যের ছেলে আটক





মোঃ এরশাদ হোসেন রনি, মোংলা
মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়ন এর বৌদ্ধমারী বাজার সংলগ্ন সুন্দরবন এ বিষ দিয়ে মাছ ধরার সময় ইউপি সদস্য সোহরাব শেখের ছেলে ইমরান শেখ  আটক।  

এ সম্পর্কে আসামী ইমরান শেখ বলেন আমি সহ আমরা ছয় জন আজ সকালে সুন্দরবনে  বিষ দিয়ে মাছ ধরতে যাই।বিকাল বেলা মাছ ধরে ফেরার পথে আমাদের দেখতে পায় ফরেস্টাররা,তখন তারা আমাদের ধাওয়া করে তখন আমি ফরেস্টার দের হাতে মাছ সহ ধরা পড়ি ।আর আমার সাথে যারা ছিলো তারা সবাই দৌড়ে পালিয়ে যায়।আমার সাথে যারা ছিলো তারা হলো সোহাগ সরদার পিতাঃসাইদুল সরদার,সোহরাফ ফকির,পিতাঃসাঈদ ফকির, হেলাল,পিতাঃঅঘ্বাত,মিজান,পিতাঃঅঘ্বাত,মোঃআক্তার সরদার পিতাঃআব্বাস সরদার।  

এ বিষয়ে বৌদ্ধমারী ফরেস্ট ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ তানভীর হাওলাদার বলেন  আজ আমি আগে থেকেই আমাদের সোর্স এর মাধ্যমে জানতে পারি ৬/৭জনের একটি গ্রুপ সুন্দরবন এ বিষ দিয়ে মাছ ধরছে।সে সংবাদের ভিত্তিতেই আমার ফাড়ির ফরেস্টার দের আমি  কয়েকটি  ভাগে ভাগ করে টহলে পাঠাই।যে যে খাল থেকে বিষ দিয়ে মাছ ধরে বের হয সে সব খালের মুখে চেকপোস্ট বসাই । যাতে কেউ বিষ দিয়ে মাছ ধরে নিয়ে সুন্দরবন থেকে বেড়িয়ে  যেতে না পারে।এছাহাক এর খালের ভিতর টহল দেওয়ার সময়। হঠাৎ আমার টহল টীমের সামনে পড়ে বিষ দিয়ে মাছ ধরা গ্রুপটি।তাদের দেখা মাত্রই ফরেস্ট টীমের সদস্যরা তাদের দাড়াতে বলে।তারা আমাদের কথা না শুনে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেস্টা করে।তখন আমার ফরেস্ট  টীমের সদস্যরা তাদের ধাওয়া করে এবং মাছ সহ একজনকে ধরে ফেলে।আর বাকিরা সবাই দৌড়ে পালিয়ে যায়

আমাদের ছোট গ্রাম

আমাদের ছোট গ্রাম
 




লেখক : আর.জে মিজানুর রহমান ইমন

আমাদের ছোট গ্রাম সবুজ শ্যামলে ঘেরা, আমাদের ছোট গ্রাম কৃষি উৎপাদনে সেরা । আমাদের ছোট গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য আমাদের অহংকার, এমন সুজলা সুফলা দেশ কোথায় পাব আর...?  আমাদের গ্রামের চারিদিকে প্রকৃতি নয়কো ভুলার মতো, প্রকৃতির স্নেহ মায়া ভালবাসায় চলছি অবিরত । আমাদের গ্রামের মেঠো পথ, শিক্ষকের মতো এই পথে চলতে গিয়ে শিক্ষা পেয়েছি যতো । আমার ছোট্ট গ্রামের শাখা নদী-নালা শিখায় জীবনের সার্থকতা লাগায় মনে রং, আমাদের ছোট গ্রাম মায়ের মতন । প্রকৃতির ভালোবাসায় করছে যতন, আমাদের গ্রামের কৃষক আপ্রাণ খেটে মরে । রুক্ষ মাটি শক্ত হাতে তারা শ্যামল করে, আমাদের ছোট গ্রাম আমি অনেক ভালবাসি, আমার দুঃখ ভুলার বাঁশি, আহারে তারাকান্দা বাসী, আমাদের ছোট গ্রাম আমি তোমায় ভালবাসি  !!!

ঝিনাইদহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু

ঝিনাইদহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু




সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা( ঝিনাইদহ)
সংবাদদাতাঃ

কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে এক ব্যাংক কর্মকর্তা মৃত্যু বরণ করেন। জানা যায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে আজ (১৬ জুলাই) বিকালে ডেডিকেটেড হসপিটালে মো:ওয়াজিউল্লাহ বয়স ৫৮ বছর,আরাপপুর নিবাসী একজন ব্যাংক কর্মকর্তার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। তিনি ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলা গাড়াগঞ্জ বাস স্টাণ্ডে সোনালি ব্যাংকে কর্মরত ছিলেন।ঝিনাইদহে  প্রথম  করোনাক্রান্ত রোগী যিনি কোভিড হাসপাতালে ভর্তি কালীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করলেন। উনার আত্মার শান্তি কামনা করছি।মহান সৃষ্টিকর্তা উনাকে জান্নাতবাসী করুন।

নাগরপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন

নাগরপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন


হাসান সাদী,নাগরপুর(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধিঃ
''সবুজ বৃক্ষ-নির্মল পরিবেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ"এই প্রতিপাদ্য নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসৃচী পালন করা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার,১৬ জুলাই ২০২০ খ্রি. সকালে নাগরপুর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে গাছের চারা রোপনের মাধ্যমে এ বৃক্ষরোপন কর্মসূচী উদ্ভোধন করা হয়।

উদ্ভোধন করেন, নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ ফয়েজুল ইসলাম।

জানা যায় এ বছর নাগরপুর উপজেলার প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার বৃক্ষরোপন করা হবে ।

বৃক্ষরোপন কর্মসূচীতে আরও উপস্থিত ছিলেন,সহকারী কমিশনার (ভূমি) তারন মসরুর,উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর ভিপি, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছামিনা বেগম শিপ্রা, নাগরপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান মনি,বেকড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো.শওকত হোসেন,পাকুটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ছিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক , উপজেলা বন বিভাগ (ভারঃ) কর্মকর্তা মো.লুৎফর রহমান, নাগরপুর থানার ওসি (তদন্ত) গোলাম মোস্তফা মন্ডল সহ নাগরপুর উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা,জনপ্রতিনিধিগণ,শিক্ষকবৃন্দ ও নাগরপুরের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

আশাশুনিতে বিভিন্ন প্রজাতির বৃক্ষের চারা বিতরণ

আশাশুনিতে বিভিন্ন প্রজাতির বৃক্ষের চারা বিতরণ





আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা  প্রতিনিধিঃ   
আশাশুনিতে বিভিন্ন প্রজাতির বৃক্ষের চারা বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ বৃক্ষের চারা বিতরণ করা হয়। উপজেলা সামাজিক বনায়ন কেন্দ্র ও সামাজিক বন বিভাগের আয়োজনে বৃক্ষ চারা বিতরণ কালে প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষক ও চাষীদের মধ্যে ২০ হাজার ৩শত ২৫টি ফলদ, বনজ, শোভাবর্ধন ও ঔষধী চারা বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কর্মসূচি শুরু হরা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সামাজিক বনায়নের রোড সরকারি এস এম জাকির হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ বাচ্চু, উপজেলা পরিষদের সিএ নাজমুল হুদা প্রমুখ।

আশাশুনিতে পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সোলার সিস্টেম বিতরণ

আশাশুনিতে পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সোলার সিস্টেম বিতরণ




আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা  প্রতিনিধি  :
আশাশুনিতে পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন অফিস চত্বরে এ সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়। সোলার সিস্টেম বিতরণ উদ্বোধন করেন আশাশুনি উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম। এসময় মসজিদ, মন্দির, সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ও হতদরিদ্রদের মাঝে ১০০টি সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়। বিতরণ কালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন সুলতানা, পল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ, আরডিও বিশ্বজিৎ কুমার ঘোষ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ বাচ্চু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আশাশুনিতে কোয়েল পাখি পালন প্রশিক্ষন উদ্বোধন

আশাশুনিতে কোয়েল পাখি পালন প্রশিক্ষন উদ্বোধন





আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা প্রতিনিধি   :
আশাশুনিতে কোয়েল পাখি পালন প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা বিআরডিবি মিলনায়তনে উপজেলা পরিষদের আয়োজনে উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প জাইকার সহায়তায় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন সুলতানার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম। ১৬ জুলাই থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণে ৩০ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করেছেন। প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা জাইকা প্রতিনিধি দেবু বিশ্বাস, আরডিও বিশ্বজিৎ কুমার ঘোষ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ বাচ্চু। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা এসএম আজিজুল হক।

আশাশুনিতে ইউপি সদস্য কর্তৃক দুর্নীতি, অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযোগ

আশাশুনিতে ইউপি সদস্য কর্তৃক দুর্নীতি, অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযোগ





আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা   প্রতিনিধি:

আশাশুনিতে ইউপি সদস্য হাফেজ রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে পাওয়া গেছে। এব্যাপারে বুধবার দুপুরে থানায় লিখিত এজাহার দাখিল করা হয়েছে। লিখিত এজাহারে প্রকাশ, উপজেলার বড়দল ইউনিয়নের বুড়িয়া গ্রামের রাজ্জাক গাজীর স্ত্রী ছকিনা খাতুন (৪২) এর কাছ থেকে সরকারি ঘর দেওয়ার নাম করে মোটা অংকের অর্থ চাঁদা চাওয়ায় ছকিনা অনেক কষ্ট হলেও সে সুদে মহাজনের কাছ থেকে টাকা এনে দেন। গত ০৩/০১/২০২০ তারিখ বিকালেসহ আরো তিন কিস্তিতে সর্বমোট ১৮ হাজার টাকা। এছাড়া দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা, অসহায় গরীব দুঃখী মানুষ, খেটে খাওয়া দিন মজুর, ভ্যান চালক ও স্বল্প আয়ের মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এবং কর্মসৃজন কর্মসূচির কাজ, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মাতৃত্ব ভাতা ভি,জি,ডি, কার্ড সরকারী ঘরসহ সকল প্রকার সরকারী সাহায্যের নামে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ করেন। অভিযোগ ও স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, মরণঘাতি করোনা ভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া অসহায় মানুষের ত্রাণ সামগ্রী বিতরনের নামে সরকারের দেওয়া অনুদান আত্মসাৎ করেছেন। জামায়াত নেতা হাফেজ রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের কাছে অডিও ও ভিডিও বক্তব্যে বলেন, ফকরাবাদ গ্রামের খানজাহান গাজী (খানজি) এর বাক প্রতিবন্ধী মেয়ের ৩০ কেজি চাউলের কার্ড করে দেবে বলে ৩ হাজার টাকা দাবি করেন। একই গ্রামের আলিমুদ্দিন মোড়লের পুত্র সানাউল্লার কাছ থেকে ৩০ কেজি চাউলের কার্ড বাবদ ৩ হাজার টাকা, মৃত নওশের আলী গাজীর পুত্র মান্নান গাজীর কাছ থেকে জেলা পরিষদের গাছ বিক্রয়ের কথা বলে ২৬ হাজার টাকা, বুড়িয়া গ্রামের পাগলা গাজীর পুত্র বাক প্রতিবন্ধী মোসলেম গাজীর কাছ থেকে প্রতিবন্ধীর কার্ড করার কথা বলে ৩ হাজার ৫০০ টাকা, আসাদ গাজীর পুত্র শহীদ গাজীর কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা, শ্রীপদ রায়ের স্ত্রীর পেগনেন্ট এর কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৬ হাজার টাকা, আনার আলী সরদারের কন্যা চায়না'র কাছ থেকে কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৫০০ টাকা, কবির আহমেদ মোল্ল্যার স্ত্রী জোহরা খাতুন'র কাছ থেকে বয়স্ক ভাতার কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৪ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে ঈদুল ফিতরের চাউল কূটকৌশলে ৫ থেকে ১০ নামের স্লীপ করে চাউল বাড়ি নেওয়া এবং এলাকায় জুয়া খেলানো ও টাকার বিনিময় বাল্যবিবাহ দেওয়া সহ বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। উল্লেখ্য ২০১৯ সালে ঈদুল ফিতরের চাউলে দুর্নীতি করায় সাতক্ষীরা থেকে প্রকাশিত দৈনিক দৃষ্টিপাত সহ বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকা নিউজ হয় তারপরেও থেমে থাকেনি দুর্নীতি ও অনিয়মের কাজ। চলতি বছরে ২০২০ সালের ১৪ই জুন সাতক্ষীরা থেকে প্রকাশিত দৈনিক কালের চিত্র, পত্রদূত, সুপ্রভাত, আজকের সাতক্ষীরা সহ বিভিন্ন অনলাইনে নিউজ প্রকাশিত হয়।এলাকার গরীব অসহায় ব্যক্তিদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের সরকারী কার্ড ও অনুদান দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অদৃশ্য শক্তি খাটিয়ে তার দুর্নীতি চলমান। গত ১০/০৬/২০২০ বুধবার বড়দল ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ (দফাদার) মোস্তাজুল হক (৪৯) বাদী হয়ে আশাশুনি থানায় ডায়রী করেন যার নাং (৪০২) তার তদন্ত চলমান। পরবর্তীতে ১৬ ই জুলাই মঙ্গলবার বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এর কার্যালয় অডিও এবং ভিডিও ফুটেজ সহ লিখিত অভিযোগ করেন। এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য হাফেজ রুহুল আমিন এর কাছে ০১৭১৪৫১৫০১৫ নাম্বারে ফোন দিয়েও কোন যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এদিকে ইউপি সদস্য রুহুল আমিন তার নিজের দুর্নীতি ও অনিয়মকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য সরকারের একজন কর্মচারী গ্রামপুলিশ মোস্তাফিজুল হকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা অভিযোগ নিয়ে ছুটে বেড়াচ্ছে।

করোনায় জনগণের পাশে থাকা সময়ের মানবিক দাবী-রেজাউল করিম চৌধুরী

করোনায় জনগণের পাশে থাকা সময়ের মানবিক দাবী-রেজাউল করিম চৌধুরী





নিজস্ব প্রতিবেদক:--

নগরীর শ্রমজীবী, কর্মহীন, দুস্থ-অসহায়, দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষদের সার্বিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসার জন্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন সংগঠন, ফাউন্ডেশন ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের প্রতি বিশেষ অনুরোধ জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও চসিক মেয়র পদপ্রার্থী বীর মু্ক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম. রেজাউল করিম চৌধুরী।

তিনি আরও বলেন, উন্নত দেশগুলোতে দ্রুত করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এ ভাইরাস প্রতিরোধে অধিকাংশ দেশ হিমশিম খাচ্ছে। সেক্ষেত্রে গরিব দেশ বাংলাদেশ। সঙ্গত কারণে করোনাভাইরাস বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়লে তা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে। তাই এই ভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়ানোর আগেই সচেতনতা বৃদ্ধি করা খুবই প্রয়োজন। এরই মধ্যে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জাতির উদ্দেশে দিক-নির্দেশনামূলক বিভিন্ন নীতিমালা ও বক্তব্য দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর সময়োপযোগী নীতিমালা ও বক্তব্যে জনগণ আন্তরিকভাবে সচেতন হয়েছেন।

বাংলাদেশ শিক্ষা ও গবেষণা  ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কর্মহীন অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণকালে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। 

১৬ জুলাই বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ শিক্ষা ও গবেষণা ফাউন্ডেশনের খাদ্য ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন চসিক ৬নং ওয়ার্ড  কাউন্সিলর আলহাজ্ব লায়ন এম আশরাফুল আলম, বাংলাদেশ শিক্ষা ও গবেষণা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান  প্রফেসর ড. আ.ম. কাজী মুহাম্মদ হারুন উর রশীদ, ফাউন্ডেশনের সেক্রেটারি অধ্যক্ষ এম সোলাইমান কাসেমী, চট্টগ্রাম অনলাইন প্রেস ক্লাবের সভাপতি অধ্যক্ষ মুকতাদের আজাদ খান, ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শামসুল আলম, আলহাজ মোহাম্মদ আবু সৈয়দ, এডভোকেট ধৃতিমান আইচ, সৈয়দ কাবেদুর রহমান কচি,অধ্যক্ষ ডা. আনোয়ার হোসেন মানিক, নুর মোহাম্মদ,সাংবাদিক এস.ডি.জীবন, মো. আলমগীর, আব্দুর রাজ্জাক, ইউসুফ মাহমুদ মিনার, মো. সাইফুদ্দিন, আনোয়ার হোসেন, আলী বেলাল শাহেদ, আবু সাঈদ সুমন, জামাল হোসেন, দেলোয়ার হোসেন বাচা, জাবেদুল ইসলাম জাবেদ, মহিউদ্দিন মানিক, নুরুন্নবী শাহেদ, মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল আহসান হিমেল, মো. রাকিব হাসান, দেলোয়ার হোসেন সুমন, তৌহিদুল ইসলাম বাবু, মুহিদ রাজু,মোহাম্মদ ইরাদ, মো.আজিজুল ইসলাম প্রমুখ।

চসিক ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লায়ন এম আশরাফুল আলম বলেন, করোনা ভাইরাসে গৃহবন্দী অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো বিত্তবানদের নৈতিক দায়িত্ব। বাংলাদেশ শিক্ষা ও গবেষণা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আ.ম. কাজী মুহাম্মদ হারুন উর রশীদ বলেন, এই ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই মানবতার কল্যাণে কাজ করছে এবং  আগামীতেও আমাদের কাজের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে-ইনশাআল্লাহ। বাংলাদেশ শিক্ষা ও গবেষণা ফাউন্ডেশনের সেক্রেটারি অধ্যক্ষ এম সোলাইমান কাসেমী বলেন, করোনা মহামারীর এই কঠিন সময়ে মধ্যবিত্তদের সংকট উত্তরণে সরকার ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের এগিয়ে আসতে হবে।

ফলোআপঃ এনামুল হক বিজয় হত্যা মামলাটি ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর

ফলোআপঃ এনামুল হক বিজয় হত্যা মামলাটি ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর





মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধি ঃ
সিরাজগঞ্জে দলীয় কোন্দলের কারনে প্রতিপক্ষের মারপিটে নিহত ছাত্রলীগ নেতা
এনামুল হক বিজয় হত্যা মামলা ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
সদর থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে আজ
বৃহস্পতিবার ছাত্রলীগ নেতা এনামুল হক বিজয় হত্যা মামলাটি ডিবি পুলিশের
কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
এদিকে, জেলহাজতে থাকা ৩ আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২দিনের রিমান্ড
মঞ্জুর করেছেন আদালত। এরা হলেন, সয়াগোবিন্দ ভাঙ্গাবাড়ি মহল্লার বাসিন্দা
ছাত্রলীগ নেতা আশিকুর রহমান বিজয় (২৩) ও জাহিদুল ইসলাম (২১) এবং
দিয়ারধানগড়ার সাগর (২০)।
মামলার নতুন তদন্ত কর্মকর্তা সিরাজগঞ্জ ডিবি পুলিশের এস.আই বদরুদ্দোজা
জিমেল জানান, জেলহাজতে থাকা ৩ আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৭দিনের
রিমান্ড আবেদন করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার আবেদনের শুনানী শেষে সিরাজগঞ্জ
অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মোরশেদ আলম ২দিনের
রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।
প্রসঙ্গত, ২৬ জুন জাতীয় নেতা প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিমের স্মরণে ছাত্রলীগ
আয়োজিত দোয়া মাহফিলে যোগ দিতে যাওয়ার পথে শহরের বাজার ষ্টেশন এলাকায় জেলা
ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও কামারখন্দ সরকারী হাজী কোরপ আলী ডিগ্রি কলেজ
শাখার সভাপতি এনামুল হক বিজয়কে মাথায় কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষ। ৯ দিন
লাইভ সাপোর্টে থাকার পর ৫ জুলাই সকালে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় বড় ভাই
রুবেল বাদী হয়ে ২৭ জুন জেলা ছাত্রলীগের ২ সাংগঠনিক সম্পাদকসহ সংগঠনের ৫
নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ্য, অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা
দায়ের করেন। সদর থানার এস.আই আনিছুর রহমান মামলাটির তদন্ত করেন। মামলা
হওয়ার পরই ৪ আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়। বর্তমানে ৩জন জেলহাজতে, আল আমিন
নামে একজন জামিনে এবং প্রধান আসামী শিহাব আহমেদ জিহাদ পলাতক রয়েছে। ঘটনার
পর ২৮ জুন মামলার আসামী জেলা ছাত্রলীগের ২ সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমিন ও
শিহাব আহমেদ জিহাদকে দল থেকে সাময়িক বহিস্কার করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।
এ অবস্থায় ৭জুন নিহত ছাত্রনেতা এনামুল হক বিজয় স্মরণে মিলাদ মাহফিলকে
কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়পক্ষের
অন্তত: ৪০জন নেতাকর্মী আহত হন। টানা দুই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে
উভয়গ্রæপে অন্যান্য সংগঠনের নেতাকর্মীরাও যুক্ত হন। এসব ঘটনায়
পাল্টাপাল্টি আরও ৪টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় বর্তমানে ২৫জন নেতাকর্মী
জেলহাজতে রয়েছেন। এই সংঘর্ষের কারনে দলের মধ্যে বিভক্তি দেখা দেয়ায়
আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির হস্তক্ষেপে ৮ জুলাই থেকে জেলা আওয়ামীলীগ
কার্যালয় তালা বন্ধ এবং আওয়ামীলীগের সকল অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের দলীয়
কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে।

বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু মাগুরা সদর থানায়

বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু মাগুরা সদর থানায়




এম এ অয়ন মাগুরা প্রতিনিধিঃ মে‌ট্রোপ‌লিটন এলাকার পু‌লি‌শিং অনুকর‌ণে দে‌শের জেলা ও প্রা‌ন্তিক নাগ‌রিক‌দের দ্বোর‌গো‌ড়ে প‌ু‌লি‌শি সেবা পৌ‌ছে দি‌তে সম্প্র‌তি দে‌শের প্র‌তি‌টি জেলায় বিট পু‌লি‌শিং কার্যক্রম চালু করা হয়।
পু‌লিশ হেড‌কোয়াট‌ার্সের নি‌র্দেশনা অনুযায়ী মাগুরা জেলার পুলিশ সুপার, খান মোহাম্মদ রেজোয়ান (পি‌পিএম) এ ব্যপা‌রে জোর তৎপরতা শুরু করেন এবং মাগুরা জেলার চার‌টি থানায় এক‌যো‌গে এ কার্যক্রম চালু করার প‌রিকল্পনা ও প্র‌য়োজনীয় নি‌র্দেশনা প্রদান ক‌রেন।
‌বিট পু‌লি‌শিং‌ বাস্তবায়‌নে মাগুরা সদর থানাধীন মাগুরা পৌরসভার ০৯ টি ওয়ার্ড সহ মোট ১৩ টি ইউ‌নিয়ন‌কে মোট ২২ টি পৃথক বি‌টে বিভক্ত ক‌রে কার্যক্রম চালু ক‌রে মাগুরা সদর থানা পু‌লিশ। পৌরসভার ০১ নং ওয়ার্ড এলাকা‌কে ০১ নং বিট ঘোষনা ক‌রে ১৫/০৭/২০২০ তা‌রিখ বি‌কে‌লে বিট এলাকার ইট‌খোলা বাজার সংলগ্ন বিট কার্যাল‌য়ে এর উ‌দ্ভোধন করা হয়। জেলা পুলিশ সুপার মহোদয়ের প‌ক্ষে সদর থানার অ‌ফিসার ইনচার্জ জনাব জয়নাল আবেদিন ০১ নং বি‌টের উ‌দ্বোধন ক‌রে সং‌ক্ষিপ্ত বক্তব্য রা‌খেন। উ‌দ্ভোধনী এ ব‌ক্ত‌ব্যে তি‌নি নি‌জে‌কে ও নি‌জের সহকর্মীদের সৎ ও দুর্নী‌তিমুক্ত দাবী ক‌রে, বিট পু‌লি‌শিং কার্যক্রম‌কে সফল কর‌তে, এলাকার মাদক,সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, ইভ‌টি‌জিং ও বাল্য‌বিবাহ সহ নানা বিষ‌য়ে তথ্য দি‌য়ে পু‌লিশ‌কে সহায়তা করার জন্য সকল‌কে অনু‌রোধ ক‌রেন। ০১ নং ওয়ার্ড কাউ‌ন্সিলর আমিনুল ইসলাম পলাশ সহ বিট উ‌দ্ভোধনী এ অনুষ্ঠা‌নে আরো উপ‌স্থিত ছি‌লেন সদর থানার ইন্স‌পেক্টর (তদন্ত) ও অপা‌রেশন্স, বিট অ‌ফিসার এসআই/ কা‌জি জুবাইর ও এএসআই/আলম‌গীর হোসেন

চৌগাছা উপজেলা আ'লীগের সাঃ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ চৌধুরী সহ করোনায় আক্রান্ত -৯

চৌগাছা উপজেলা আ'লীগের সাঃ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ চৌধুরী সহ করোনায় আক্রান্ত -৯




চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ চৌধুরী,  করোনায় আক্রান্ত অন্যরা হলেন চৌগাছা সোনালী ব্যাংকের অফিসার চিরঞ্জিত, মাড়ুয়া গ্রামের হারুন অর রশীদ, বাদেখানপুর গ্রামের শাহাবুদ্দিন, ফতেপুর গ্রামের বকুল হোসেন, মেহেদী মাসুদ চৌধুরীর গাড়ি চালক দুর্গাপুর গ্রামের সমির কুমার, গৃহপরিচারিকা দুর্গাপুর গ্রামের ফাতেমা, মাসুদ চৌধুরীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া দুর্গাপুর গ্রামের নুর আলম এবং ঝিকরগাছা উপজেলার গঙ্গানন্দপুর গ্রামের নির্মল কুন্ডু সহ নতুন করে  ৯ জনের করোনা শনাক্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.  লুৎফুন্নাহার লাকি।

এনিয়ে চৌগাছায় মোট  করোনা রোগির সংখ্যা ৬০। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩৫ জন।

 বর্তমানে তাদের সবাই নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা  বলেন, গত ১৩ ও ১৪ জুলাই তাদের নমুনা পাঠানো হয় যশোর সিভিল সার্জন অফিসে। যে রিপোর্ট বৃহস্পতিবার এসে পৌছায়, তাদের নয় জনের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে, শনাক্তরা তাদের নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন। এদের মধ্যে নির্মল কুন্ডু ঝিকরগাছা উপজেলার বাসিন্দা হওয়ায় ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনাকে জানানো হয়েছে।

ঝিনাইদহে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন

ঝিনাইদহে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন



 

খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, 
( ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি) 



সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হরিনাকুন্ডু উপজেলার গুড়পাড়া ভাতুড়িয়া গ্রামের মৃত গোলাম রহমান এর পুত্র  বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেন (মুছা) আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় ভাতুড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে  রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন হরিনাকুন্ডু উপজেলার নির্বাহী অফিসার সৈয়দা নাফিস সুলতানা, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান, ইউ পি চেয়ারম্যান শরাফত দৌলা ঝন্টু, উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার, মহিউদ্দিন, রেজাউল ইসলাম গেন্দা প্রমূখ।  উল্লেখ যে গতকাল বুধবার  ৪টার দিকে হলিধানী বাজার থেকে ইজিবাইক যোগে রামচন্দ্র পুরের দিকে যাচ্ছিল এসময় সামনে থেকে একটি ট্রাক সজোরে ধাক্কা দিলে তিনি পায়ে এবং বুকে ব্যাথা পায়  তাকে দ্রুত ঝিনাইদহ  সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এরপর ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যা ৭টায় তিনি মৃত্যু বরন করেন।
বীরমুক্তিযোদ্ধা মুসার মৃত্যুতে হরিনাকুন্ডু উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান শরাফত দৌলা, সাংবাদিক শাহানুর আলম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মহিউদ্দীন গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করেছে।

কেশবপুরে গাঁজাসহ মহিলা গ্রেফতার

কেশবপুরে গাঁজাসহ মহিলা গ্রেফতার





মোরশেদ আলম যশোর ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ  
যশোরের কেশবপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১ কেজি গাঁজাসহ এক মহিলা ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। তার নামে কেশবপুর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে। 

থানা সূত্রে জানা গেছে,বুধবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে  থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জসীম উদ্দীনের নির্দেশে উপ-পরিদর্শক সুপ্রভাত মন্ডল,অরুপ কুমার বসু, সহকারী উপ-পরিদর্শক আব্দুস সালাম সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে উপজেলার মজিদপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী ইদ্রিস আলীর  স্ত্রী হালিমা বেগমকে (৪৮) নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। এসময় তার কাছে থাকা একটি ব্যাগ থেকে ১কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জসীম উদ্দীন বলেন, গ্রেফতারকৃত হালিমা বেগমের বিরুদ্ধে থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে বৃহস্পতিবার তাকে যশোর আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।



সংসদে জাতীয় যাকাত ফান্ড গঠনের প্রস্তাব দিবেন - এমপি শামীম ওসমান

সংসদে জাতীয় যাকাত ফান্ড গঠনের প্রস্তাব দিবেন - এমপি শামীম ওসমান
  




নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি,মোঃ শিপনঃ

করোনার প্রভাবে দেশের অর্থনৈতিক বিপর্যয় দেখা দেওয়াতে জাতীয় পর্যায়ে জাকাত ফান্ড গঠনের আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

তিনি বলেন, করোনার আন্তর্জাতিক পর্যায়ে  আসছে ধস।তিন মাস পরে দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে এবং অর্থনৈতিক বিপর্যয় ঘটবে বলে তিনি বলেন। এই দূরবাস্থা থেকে দেশের ভূমিহীন ও কর্মহীন মানুষদেরকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রধান করে বরেণ্য অর্থনীতিবিদ, রাজনীতিক, আলেম, শিল্পপতি, 
গণমাধ্যমকর্মীদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা প্রয়োজন। জাতীয় সংসদে আগামী অধিবেশনে এ ব্যাপারে আমি প্রস্তাব উত্থাপন করবো বলে তিনি জানান। 

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে ‘স্পিকআউট’ সংগঠনের আয়োজনে এক বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শামীম ওসমান বলেন, দেশের ক্রাইসিস মোকাবিলায় এই ফান্ড কাজ করবে। এই ফান্ডের কীভাবে অর্থ দেশের আর্থ-সামাজিক বিভিন্ন খাতে ব্যয় হবে এমন একটি প্রস্তাবনাও তুলে ধরেন তিনি।

তিনি বাংলাদেশের ১৮ কোটি লোকের মধ্যে এক কোটি লোক যাকাত দেয়।এক কোটি লোক যদি পাঁচ লাখ টাকা করেও জাকাত দেয়, তবেই এ স্যগঠন হবে শক্তিশালী

নওগাঁর মান্দায় বন্যার কবলে পরে মানুষ পানিবন্দী

নওগাঁর মান্দায় বন্যার কবলে পরে মানুষ পানিবন্দী





মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

গত কয়েক দিনের একটানা বর্ষণ ও পাহাড়ি  উজান থেকে নেমে আসা পানি বাড়ছে নওগাঁর মান্দা উপজেলার মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত আত্রাই নদীর পানি। এ নদীর পানি জোতবাজার পয়েন্টে এখন বিপদসীমার ১২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বর্তমানে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

এতে আত্রাই ও রাণী(ফকিরনি) নদীর উভয় তীরের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের অন্তত: ৫০ টি পয়েন্ট ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে এ দুই নদীর উভয় তীরের চারটি বেড়িবাঁধ ও জোকাহাট দাসপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে গেছে। এতে মান্দা-আত্রাই সড়কের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন হাজার হাজার  মানুষ। বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় দুর্গত এলাকার মানুষ বন্যা নিয়ন্ত্রণ মূল বাঁধে আশ্রয় নিতে শুরু করেছেন। এসব বন্যা দূর্গত এলাকার মানুষজন গবাদিপশু নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন। বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ বাধতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও স্বোচ্ছাসেবকরা প্রানপনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ভাঙনকৃত বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ জোকাহাট দাসপাড়া, বেড়িবাঁধগুলো হচ্ছে পার-নুরুল্লাবাদ মন্ডলপাড়া, চকরামপুর, কয়লাবাড়ি, বাইবোল্যা। বুধবার সকালে এসব বেড়িবাঁধ ভেঙে তলিয়ে গেছে ধান, পাট ও সবজির ক্ষেত। ভেসে গেছে অনেক পুকুরের মাছ। এর মধ্যে ২০১৭ সালের বন্যায় চকরামপুর ও কয়লাবাড়ি বেড়িবাঁধ ভেঙে যাওয়ার পর আর মেরামত করা হয়নি। এতে করে নদীর পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এসব ভাঙন স্থান দিয়ে পানি ঢুকে দুই গ্রামের তিন শতাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।
এদিকে পানির প্রবল চাপে আত্রাই ও ফকিরনির নদীর উভয় তীরের বনকুড়া, দক্ষিণ চকবালু, জোকাহাট, চকরামপুর, উত্তর চকরামপুর, কয়লাবাড়ি, শহরবাড়ি ভাঙ্গীপাড়া, নুরুল্লাবাদ নিখিরাপাড়া, করাতিপাড়া, জোতবাজার, বাগাতিপাড়া, পশ্চিম নুরুল্লাবাদ, শামুকখোল, লক্ষ্মীরামপুরসহ অন্তত: ৫০ টি পয়েন্ট চরম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ টিকিয়ে রাখতে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে দিনরাত কাজ করছেন স্থানীয়রা। বাঁধে রাতে বসানো হয়েছে পাহারা। এছাড়া কালিকাপুর, ফেরিঘাট,কয়াপাড়া, কামাকুড়ি,দোসতি প্রসাদপুরবাজার,পাজরভাঙ্গা,পলাশবাড়িসহ আরো বেশি এলাকা ভাঙনের উপক্রম হয়েছে। 

ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা আত্রাই নদীর ডান তীরে পারনুরুল্লাবাদ থেকে মিঠাপুর পর্যন্ত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের মাত্র এক ফুট নিচে পানি অবস্থান করছে। কোথাও কোথাও মূল বাঁধ টপকে পানি পার হচ্ছে। বালুর বস্তা ফেলে পানি ঠেকিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন স্থানীয়রা। তাদের অভিযোগ, এ দূর্যোগ মুহুর্তে সহযোগিতা করছে না পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজন। রাস্তায় তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
তবে, এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান। তিনি বলেন, কয়েকদিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে আত্রাই নদীর পানি হু-হু করে বাড়ছে। আগামি ২৪ ঘন্টা পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। আবহাওয়া পরিস্কার হলে দু’একদিনের মধ্যে পানি কমতে শুরু করবে। পানি বাড়তে থাকায় বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ স্থানগুলো তদারকি করছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজন।

ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল হালিম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাকিবুল হাসান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিমসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা।
মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল হালিম বলেন, নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। বন্যা মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি রয়েছে বলেও জানান তিনি।

দিনাজপুরে তাঁতী লীগের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করলেন -এমপি জুঁই

দিনাজপুরে তাঁতী লীগের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত    বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করলেন -এমপি জুঁই





মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত বৃক্ষরোপন কর্মসূচী যথাযথভাবে আমাদের পালন করতে হবে। কোথাও কোন জায়গা ফাঁকা রাখা যাবে না। রাস্তার পাশে, বাড়ীর ছাদে সহ সব জায়গাতে গাছ লাগাতে হবে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে এটি আরও কার্যকরী। সবজি আবাদের মধ্য দিয়ে দেশের সবজির খাদ্য চাহিদা পূর্ণ করতে হবে। পাশাপাশি ফলজ, বনজ ও ওষধি গাছ লাগিয়ে আমাদের দেশকে সুজলা, সুফলা, শষ্য-শ্যামলা সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।
দিনাজপুর সরকারি কলেজ মোড় সংলগ্ন সড়কে বাংলাদেশ তাঁতী লীগ দিনাজপুর জেলা শাখার আয়োজনে আনুষ্ঠানিকভাবে বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি জুঁই একথা বলেন। সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ আলী সোহাগের সভাপতিত্বে এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বিধু ভুষণ সরকার, জাতীয় মহিলা সংস্থা দিনাজপুরের চেয়ারম্যান মেহের সুলতানা, বাংলাদেশ তাঁতী লীগ দিনাজপুর জেলা শাখার সদস্য ও সাবেক ছাত্রনেতা সাবেক এমপি মরহুম আমজাদ হোসেনের পুত্র মোঃ শওকত হোসেন বুল্লা, মাহমুদ হোসেন সুমন, মোঃ কামরুজ্জামান শাহিনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে দিনাজপুুরে সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের বৃক্ষরোপন

মুজিববর্ষ উপলক্ষে দিনাজপুুরে সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের বৃক্ষরোপন




মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি॥ মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির সার্বিক সহযোগিতায় ও তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির গৃহীত কর্মসুচীর অংশ হিসেবে ১৬ জুলাই বৃহস্পতিবার দিনাজপুর সদর উপজেলার ১নং চেহেলগাজী ইউনিয়নের চাঁদগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজ চত্বরে সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আয়োজনে বৃক্ষরোপন কর্মসুচীর উদ্বোধন করেন দিনাজপুর জেলা আওয়ামীলীহ নেতা মোঃ আজগার আলী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ১ নং চেহেলগাজী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি জর্জিস সোহেল, চাঁদগঞ্জ হাইস্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ এস এম শাহজাহান চৌধুরী, সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, সহ-সভাপতি পাভেল ইমরান, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা ইয়ারব আলী স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতৃবৃন্দ। বক্তরা বলেন, বৃক্ষ মানুষের জন্য সম্পদ। বৃক্ষ কেবল পরিবেশবান্ধব নয়, জীবনবান্ধব। স্বাভাবিক ও শান্তিপূর্ন জীবনযাপনে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা জরুরি।

শৈলকুপায় সখের ঘুড়ি কেড়ে নিল যুবকের প্রাণ

শৈলকুপায় সখের ঘুড়ি কেড়ে নিল যুবকের প্রাণ




সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা(ঝিনাইদহ) সংবাদদাতাঃ

ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার ধর্মপাড়া গ্রামের আকাশে যে ছেলেটি
পতপত করে সখের ঘুরি উড়াতো আজ সে শুধুই অতীত।
১৬ বছরের টগবগে কিশোর সুজন ( কহিড়া) ঘুড়িটি
নিজ হাতে রিসিভ করতে গিয়ে দূর্ঘটনার শিকার হয়।
ঘুড়ির শিং শলাকা তীব্র গতিতে তার চোখের ভিতর
প্রবেশ করে। ১৫ তারিখ বিকালে এই ঘটনা ঘটে এবং রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে মুকুল বিশ্বাসের ছেলে সুজনের অকাল
মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে । তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।

ঝিকরগাছার মাগুরা ইউনিয়নে " জমি আছে ঘর নেই" প্রকল্পের আওতায় সকল ঘরের উদ্বোধন করেন - এমপি নাসির উদ্দিন

ঝিকরগাছার  মাগুরা ইউনিয়নে " জমি আছে ঘর নেই" প্রকল্পের আওতায় সকল ঘরের উদ্বোধন করেন - এমপি নাসির উদ্দিন

মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ 

বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের “জমি আছে ঘর নেই” প্রকল্পের আওতায়, ঝিকরগাছা মাগুরা ইউনিয়নের দেওয়া সকল ঘরের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। 

শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যশোর-০২ আসনের মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা, মেজর জেনারেল (অবঃ) অধ্যাপক ডাঃ মোঃ নাসির উদ্দিন।

শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যশোর-০২ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা, মেজর জেনারেল (অবঃ) অধ্যাপক ডাঃ মোঃ নাসির উদ্দিন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের “জমি আছে ঘর নেই” প্রকল্পের আওতায়, যে ঘর দেওয়ার প্রতিশ্রুতি তিনি আমাদের কে দিয়েছিলেন, তারই হুবহু বাস্তবায়ন আজ আপনারা দেখতে পাচ্ছেন। শুধু এই নয় সমগ্র বাংলাদেশের জনগন আজ বিভিন্ন প্রকারের সুবিধা পাচ্ছেন। আরোও বলেন, মাননীন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের “জমি আছে ঘর নেই” প্রকল্পের আওতায়, এই ভাবে ঘর দেওয়া অব্যহত থাকবে। আপনারা সবাই করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে সাবধান থাকবেন, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করা ও ঘরে থাকার পরামর্শ দেন।

ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমী মজুমদারের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম, উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোঃ সেলিম রেজা।



অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন ঝিকরগাছা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুভাগত বিশ্বাস।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম রেজা, মাগুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, সাবেক চেয়ারম্যান মোসলেম মৃধা, ১ নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদের  সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান , মাগুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা প্রমূখ।

দিনাজপুর সেক্টরের ব্যবস্থাপনায় ও ২৯ বিজিবি‘র আয়োজনে সীমান্তবর্তী তিন শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

দিনাজপুর সেক্টরের ব্যবস্থাপনায় ও ২৯ বিজিবি‘র আয়োজনে সীমান্তবর্তী তিন শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ




মামুনুর রশিদ, দিনাজপুর প্রতিনিধি : করোনা ভাইরাস ও বন্যার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ দিনাজপুরের  সীমান্তবর্তী এলাকার অসহায় ৩ শতাধিক পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করলো ২৯ বিজিবি দিনাজপুর।
আজ বৃহস্পতিবার সকালে বিদ্যানন্দ ফাইন্ডেশনের সহায়তায় দিনাজপুর সদরের খানপুর বিওপি‘র দায়িত্বপূর্ন সীমান্তবর্তী এলাকায় দিনাজপুর সেক্টরের ব্যবস্থাপনায় ও ২৯ বিজিবি‘র আয়োজনে স্থানীয় তিন শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন দিনাজপুর সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো: জহিরুল হক খাঁন। এসময় অনুষ্ঠানে ফুলবাড়ী ২৯ বিজিবি’র অধিনায়ক লেঃ কর্নেল মোঃ শরিফুল্লাহ আবেদ, কোম্পানী কমান্ডার, বিওপি কমান্ডার, আস্করপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জিয়াউর রহমান জিয়াসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। 
অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা হিসেবে চাল,ডাল,তেল,লবন ও সাবানসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বিতরন করা হয়।

আত্রাই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ, ১৪ হাজার পরিবার পানিবন্দী

আত্রাই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ, ১৪ হাজার পরিবার পানিবন্দী





Add caption

 মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
  রাজশাহী ব্যিরো
     
নওগাঁর আত্রাইয়ে আত্রাই নদীর তিন স্থানে বাঁধ ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকাজুড়ে পানি থৈথৈ করছে। সার্বক্ষনিক উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম, এসিল্যান্ড আরিফ মুর্শেদ মিশু, ওসি মোসলেম উদ্দিন এবং পিআইও নভেন্দু নারায়ন চৌধুরী বন্যার সার্বিক বিষয় তদারকি করছেন।

জানাযায়, কয়েক দিনের প্রবল বর্ষণ এবং উজানের পানি নেমে আসায় আত্রাই নদীর পানি বিপদ সীমার ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার দিবাগত রাতে আত্রাই- বান্দাইখাড়া সড়কের জিয়ানিপাড়া নামক স্থানে, আত্রাই- সিংড়া সড়কের বৈঠাখালি নামক স্থানে এবং পাঁচুপুর গ্রামে বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙ্গে নিম্নাঞ্চল পানিতে প্লাবিত হচ্ছে। এতেকরে উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন এবং পাশবর্তী রাজশাহীর বাগমাড়া উপজেলার ২টি ইউনিয়ন নাটরের নলডাঙ্গা,সিংড়া ও নন্দীগ্রাম উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন প্লাবিত হতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে উপজেলার সাহেবগঞ্জ, শিবপুর, ভরতেতুলিয়া,কুমঘাট সহ আরও অনেক গ্রাম নদী সংলগ্ন হওয়ায় ঐসব গ্রামের মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। পানিবন্দি কিছুপরিবার আত্রাই পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় এবং পাথাইলঝাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার কেএম কাউছার হোসেন জানান, বন্যায় উপজেলার ২৩৪৯ হেক্টর আবাদি জমির মধ্যে ২০৫৮ হেক্টর আবাদি জমি পানিতে তলিয়ে গেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃছানাউল ইসলাম বলেন, বন্যার সার্বিক বিষয় মনিটরিং করা হচ্ছে। অনেক ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৫০টি গ্রামের ১৪ হাজার পরিবার বানভাসি হয়েছে, খামার ও মৎস চাষের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতির পরিমান নিরুপন করে জেলা এবং ত্রাণ মন্ত্রনালয় কর্তৃপক্ষকে অবগত করছি। এছাড়া স্থানীয়ভাবে বানভাসিদের শুকনো খাবার বিতরণ করছি ৷

ঝিনাইদহে আরো ২৮ জন করোনায় আক্রান্ত

ঝিনাইদহে আরো ২৮ জন করোনায় আক্রান্ত



  
সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা( ঝিনাইদহ) সংবাদদাতাঃ

২৮জন আক্রান্তদের থেকে ৩জন কে যশোর জেলা স্থানান্তর করা হয়েছে 

১৬_৭_২০২০ইংতারিখে কোভিড-১৯ এর আপডেট তথ্য :

অফিসিয়াল ভাবে আমাদের কাছে কুষ্টিয়া_ল্যাব থেকে আরো ৭২টি_নমুনার_ফলাফল এসেছে যার ৪৭জন_নেগেটিভ এবং ২৫জন_নতুন_আক্রান্ত।

মোট প্রাপ্ত ফলাফলের সংখ্যা২৮৮৬+৭২=২৯৫৮
নেগেটিভ_২৩৯৮
আক্রান্ত_৫৩৫+২৫=৫৬০

মোট_সংগৃহীত_নমুনার_সংখ্যা_৩২৫৩

উপজেলা_ভিত্তিক_আক্রান্তের_মোট_সংখ্যা 
সদর_২০১+১৭=২১৮
শৈলকূপা_৭২+১=৭৩
হরিনাকুন্ডু_২৪
কালীগন্জ_১৮১+৫=১৮৬
কোটচাদপুর_৩০+১=৩১
মহেশপুর_২৭+১=২৮

আক্রান্তদের_এলাকা_সমুহ

সদর_(১৭)-
১.জামতলা সড়ক 
২.কৃষ্ণনগর পাড়া
৩.সোনালী ব্যাংক
৪.বড় কামার কুন্ডু
৫.১৬২ কবি সুকান্ত সড়ক
৬.আরাপপুর 
৭.কানুহরপুর, বিষয়খালি
৮.হামদহ
৯.এইস. এস. এস. সড়ক
১০.এইস. এস. এস সড়ক 
১১.এইস. এস. এস. সড়ক
১২.কাঞ্চন নগর
১৩.কাঞ্চন নগর
১৪.চাকলাপাড়া
১৫.চাকলা পাড়া
১৬.শহীদ মশিউর রহমান সড়ক
১৭.সদর হাসপাতাল 

কালীগঞ্জ_(৫)-
১.মাঝদিয়া
২.বার বাজার
৩.চাপালি
৪.চাপালি
৫.ফয়লা

শৈলকূপা_(১)-
১.হাট ফাজিলপুর

মহেশপুর_(১)-
১.কৃষ্ণপুর যাদবপুর

কোটচাঁদপুর_(১)-
১.তালসার বাজার পাড়া

​মোট_সুস্থতার_সংখ্যা_১৭৮+১৪=১৯২

উপজেলা_ভিত্তিক_সুস্থতার_সংখ্যা

সদর_৪৬+১৪=৬০
শৈলকূপা_৩৯
হরিনাকুন্ডু_৬
কোটচাঁদপুর_২০
কালীগন্জ_৫৬
মহেশপুর_১১

কোভিড_১৯_হাসপাতালে_ভর্তি_রোগীর_সংখ্যা_২৫

মোট_মৃত্যুর_সংখ্যা_১১
সদর_৩
শৈলকূপা_ ৪
কালিগন্জ_৪

নবীনগর জোড়পূর্বক বাড়ী দখল প্রতিবাদ করায় মহিলাদের উপর অত্যাচার

নবীনগর জোড়পূর্বক বাড়ী দখল প্রতিবাদ করায় মহিলাদের উপর অত্যাচার





এস.এম অলিউল্লাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলা শিবপুর ইউনিয়নের মিরপুর গ্রামের মোঃ কাশেম আলি পিতা মৃত আব্দুর রহমান এর বিরুদ্ধে  শামীম মিয়া ও বাছির মিয়া উভয় পিতা মৃত দানু মিয়ার বাড়ী অবৈধভাবে দখল করে রাখার অভিযোগ ওঠেছে।এই ঘটনার প্রতিবাদ করায় গতকাল বুধবার(১৫/৭)ভোরে মৃত দানু মিয়ার স্ত্রী ও পুত্রবধু (বাছির মিয়ার স্ত্রী)ওপর কাশেম আলির স্ত্রী ও দুই পুত্রবধু মিলে আতর্কিত হামলা চালায়।হামলায় দানু মিয়ার স্ত্রী ও পুত্রবধু গুরুতর জখম হয় পাশাপাশি তাদের বাড়িঘরও ভাংচুর করে।এ ঘটনায় মৃত দানু মিয়ার স্ত্রী মোসাঃ জামিলা খাতুন নিজে বাদী হয়ে প্রতিপক্ষের ৬ জনকে আসামী করে নবীনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করে।মামলা নং SDR-৮১১।

ঘটনার মূলে জানা যায়,কাশেম আলি ও মৃত দানু মিয়া সম্পর্কে তারা চাঁচত চাচা হয়।তাদের মধ্যে সম্পত্তি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে।দানু মিয়ার দুই ছেলের দাবী তাদের বাবার বাড়ী ৭ শতাংশ জায়গা কাশেম আলি জোরপূর্বক দীর্ঘদিন ধরে দখল করে রেখেছে।দানু মিয়ার দুই ছেলে শামীম মিয়া ও বাছির মিয়া উভয়েই প্রবাসে আছে। বাড়ীতে পুরুষ না থাকায় তাদের বাড়ী জোড় করে কাশেম আলি দখল করে রেখেছে।সেটা গ্রামের সর্দার মাতব্বর এর কাছে নালিশ করলে তারা কাশেম আলীকে ৭শতক এর মধ্যে ৩শতক জায়গা দিয়ে দেওয়ার জন্য রায় করে।সেই রায় কাশেম আলি বিচারের সময় মানলেও নির্ধারিত সময় ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও জায়গা ফেরত দেয় নাই।এ দিকে দানু মিয়ার ছেলেরা জায়গা ফিরে পাওয়ার জন্য কোন উপায় না দেখে শেষ পর্যন্ত আদালতে একটি মামলা করেন যা এখনো চলমান।

এ ব্যাপারে কাশেম আলীর সাথে যোগাযোগ করার জন্য বাড়ীতে যাওয়া হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।কাশেম আলির স্ত্রীর সাথে কথা বললে তিনি জানান,"আমি ও আমার পত্রবধু কাউকে মারাধরি করি নাই।এসব মিথ্যা কথা।দানু মিয়ার বউ ও ছেলের বউ মিলে আমার বাড়ী ভাংচুর করতে দেখলে আমি প্রতিবাদ করলে আমাকে মারতে শুরু করে।পরবর্তিতে আমার ছেলের বউয়েরা আমাকে উদ্বার করে নিয়ে যায়।তিনি বলেন তারা যদি আমাদের কাছ থেকে জায়গা পায় তাহলে মামলা যেহেতু করা হয়েছে সেহেতু রায়ে যা হয় তা আমরা মানব।যদি তারা আমাদের কাছে জায়গা পায় তা আমরা দিয়ে দিব।"

করোনায় চুয়াডাঙ্গা আ.লীগের প্রচার সম্পাদকের মৃত্যু

করোনায় চুয়াডাঙ্গা আ.লীগের প্রচার সম্পাদকের মৃত্যু

,  
রফিকুল, জিবননগর,চুয়াডাঙ্গা :- করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ফেরদৌস ওয়ারা সুন্নার (৬০) মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৫ জুলাই) রাত সাড়ে ১০টার সময় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শামীম কবির।

ডা. কবির বলেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক পৌর শহরের গুলশান পাড়ার বাসিন্দা ফেরদৌস ওয়ারা সুন্না কয়েকদিন ধরে গলাব্যথা, জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন।

সোমবার তার নমুনা সংগ্রহ করে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়। মঙ্গলবার তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। বুধবার বিকেলে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে রাখা হয়। সেখানে রাত সাড়ে ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে, চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে একজন সহকারী মেডিকেল অফিসারসহ আরও ১৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩৩৬ জনে।

চুয়াডাঙ্গার সিভিল সার্জন ডা. এএসএম মারুফ হাসান বলেন, বুধবার রাত সাড়ে ৯টার সময় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব থেকে ২১ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল এসেছে। এর মধ্যে ১৩ জন পজিটিভ রয়েছেন। আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে দামুড়হুদা উপজেলায় একজন, জীবননগর উপজেলায় পাঁচজন ও চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় সাতজন রয়েছেন। এদের মধ্যে নয়জন পুরুষ ও চারজন। আক্রান্তদের বয়স ১৪ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে। জেলায় এ পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২০৫ জন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব ও ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব ও ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা







মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপঃ
কথিত আছে যে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা হচ্ছে সাংবাদিকতার আতুরঘর। সংবাদ সংগ্রহ, নির্বাচন কিংবা লেখায় আনাড়িপনার ছাপ থাকলেও সাংবাদিকতার প্রতি অপরিসীম ভালোবাসা থেকেই একজন নিজেকে ক্যাম্পাস সাংবাদিক হিসেবে গড়ে তোলেন। সেই ভালোবাসা বা টান থেকেই নানা সংকটের মধ্যে থেকেও এক ঝাঁক তরুণ শিক্ষার্থীর সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব সবসময় জবির সকল সংবাদ পাঠকের কাছে সবার আগে পৌঁছে দেয়।


বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশীরভাগ সময় ক্লাস, পরীক্ষা লেগেই থাকে। এই একাডেমিক ব্যস্ততার মাঝেই গোয়েন্দাদের মত আমাদের ২৪ ঘণ্টা চোখ-কান খোলা রেখে ক্যাম্পাসে পূর্ণ নজরদারী রাখতে হয়। ক্যাম্পাসে সাংবাদিকতায় এক অন্যরকম আনন্দ আছে, জীবনকে উপভোগ করা যায় । চ্যালেঞ্জিং হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলা যায়। নিজেকে দক্ষ, সৎ এবং সাহসী হিসেবে গড়ে তোলার অন্যতম পন্থা হচ্ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা।



জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব আমাদের একটি পরিবার। দুই সপ্তাহ পরপর আমাদের কার্যকরী মিটিং থাকে। সেখানে শুধু যে সাংবাদিকতা নিয়ে আলোচনা হয় তা নয়, পেশাদারিত্বের ছাপ থেকে বেরিয়ে এসে সমসাময়িক বিষয়সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হয়। কখনো আমরা মেতে উঠি আড্ডায়, জবির মাসুক চত্বর কিংবা কাঠাল তলায় চলে আড্ডা। আড্ডার ছলে কথা হয় ক্যারিয়ার নিয়ে, কখনো বা টিএসসিতে চা খেতে খেতে নিছকই চলে আড্ডা। আবার কখনো গানে গানে ছড়িয়ে পড়ে তারুণ্যের উন্মাদনা। কখনো আমরা বেরিয়ে পড়ি নতুন কিছু দেখতে। কখনো বা দল বেঁধে খাওয়াদাওয়া করা হয়। আবার কখনোবা চলে যাই এক দিনের ট্যুরে।



আমাদের প্রেসক্লাবের সদস্যরা সাংবাদিকতার পাশাপাশি অন্যান্য সামাজিক কাজ কর্মের সাথে জড়িত রয়েছেন। সামাজিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে পাশে দাড়াচ্ছেন অসচ্ছল মানুষদের পাশে। সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি থেকে শুরু করে সকল ধরণের সামাজিক কর্মকান্ডে যুক্ত আছেন তারা।


ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা বাহ্যিক দিক দিয়ে অনেকের কাছে শখের মনে হলেও এর পদে পদে রয়েছে চ্যালেঞ্জ। সত্য প্রকাশে অনেক ক্ষেত্রে নিজের কাছের বন্ধুদের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট হয় । প্রসাশনের বিভিন্ন চাপসহ অন্যান্য চাপ মাথায় রেখে নিরলসভাবে কাজ করে যেতে হয়। শুরুতে গণমাধ্যমের সংকটে কিছুটা হোঁচট খেলেও অদূর ভবিষ্যতে আমরা ক্যাম্পাসে সাংবাদিকতায় কাঙ্খিত সাফল্যে পৌঁছাতে পারব বলে আমাদের প্রত্যাশা।



সাংবাদিকতার শিক্ষানবিশ সময়টা হল ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা। ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা করি তারা নির্দিষ্ট কোন ফরমেটে কাজ করেন না। পত্রিকা অফিসগুলোতে আলাদা আলাদা বিট থাকে কিন্তু ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের সব বিটের নিউজই করতে হয়। সেজন্য সাংবাদিকতা শেখার জন্য সর্বোৎকৃষ্ট সময় হচ্ছে ক্যাম্পাসের সময়টা, এখানে সকল জায়গায় পারদর্শীতা অর্জনের সুযোগ থাকে। এই সুযোগটাই জবি প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা নিয়েছে। ক্যাম্পাসে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন থেকে শুরু করে সকল নিউজেই জবি প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের রয়েছে অকল্পনীয় ভূমিকা। 


ক্যাম্পাস সাংবাদিকতায় অনেক বাধার সম্মুক্ষিণ হতে হয়। আর চ্যালেঞ্জ বলতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো অনিয়ম, দুর্নীতি, ছাত্র সংগঠনগুলোর কার্যক্রম বা কিছু অনিয়ম নিয়ে লিখলে বাঁধার সম্মুখীন হতে হবে এটাই স্বাভাবিক। এই বাঁধা ও অসহযোগিতাই ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের জন্য চ্যালেঞ্জ। বিশ্ববিদ্যালয় জীবন হচ্ছে একজন শিক্ষার্থীর গড়ে ওঠার সময়। একজন শিক্ষার্থীর ক্যারিয়ার, জীবনকে কোন পথে ধাবিত করবে সেই সময়টাতে যারা আমরা ক্যাম্পাস রিপোর্টিং এ যুক্ত, আমরা যদি সামনে ভালো ভবিষ্যৎ না দেখতে পারি তখন এই পেশা থেকে ঝড়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। এগুলোই হচ্ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতার চ্যালেঞ্জ।



জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জগেশ রায় বলেন, 'ক্যাম্পাসে সাংবাদিকতা করে জীবনটাকে আলাদা ভাবে উপভোগ করা যায়। আর এর মধ্যদিয়েই সবার সাথে মেলামেশা করা, অন্যকে বোঝানো এবং নতুন বিষয় জানা যায়। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব এমন একটা সংগঠন যেখান থেকে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা উপভোগ করা যায়।'




মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ 
শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক 
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
০১৭৭৫৬৯৯২১৯

প্রিয় শুভাকাঙ্ক্ষী/প্রিয় জন

প্রিয় শুভাকাঙ্ক্ষী/প্রিয় জন





 আসসালামুআলাইকু! অনেক অনেক আনন্দের সাথে আপনাকে জানাচ্ছি যে,আমার নিজস্ব চেম্বার এর নাম-মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্র,রিক্সা স্ট্যান্ড-রন্জন মিষ্টির দোকানের সামনে।
মেইন রোড,নাগরপুর, টাংগাইল। 

@এখন থেকে এখানে নিয়মিত বসবো। 

@বিদেশী হোমিও মেডিসিন দ্বারা সকল প্রকার জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।

@আপনাদের দোয়া ও সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন। 

@আপনি আমার চেম্বার পরিদর্শন করে  ও নিভূল  পরামর্শ দেওয়া আমি সাদরে গ্রহন করবো এবং মৃল্যায়ন করবো,ইনশাআল্লাহ।  

@আজ আর লিখলাম না-করোনা প্রতিরোধে সচেতন থাকুন,ভাল থাকুন,অাল্লাহ হাফেজ।

বি.দ্র:দরিদ্র রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা ও মেডিসিন দেওয়া হয়। ক্রনিক রোগীদের জন্য প্রয়োজনে মেডিকেল কলেজ অধ্যাপকদের নিয়ে অভিজ্ঞ চিকিৎসক সমন্বয়ে বোর্ড গঠন করে চিকিৎসা ও পরামর্শ দেওয়া হয়। 

শুভেচ্ছান্তে ও দোয়াপ্রার্থী
ডা.এম.এ.মান্নান
প্রতিষ্ঠাতা ও এমডি
মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্র
নাগরপুর, টাংগাইল।
০১৭২১৪০৬৭২০

আর অন্ধকার নয় এবার আলো পাবে ভোলা

আর অন্ধকার নয় এবার আলো পাবে ভোলা









মোঃ আওলাদ হোসেন জেলা প্রতিনিধি ভোলা,(দৌলতখান) 

আমরা যারা ভোলার সন্তান বা ভোলায় যাদের স্বজনেরা বসবাস করেন তারা সবাই কিছু হলেও জানি ভোলার মানুষ বিদ্যুৎ সমস্যা নিয়ে কি রকম যন্ত্রনার মধ্যে আছেন।ভোলা সব কিছুতেই  উদ্বৃত্ত জেলা।ভোলার গ্যাস সম্পদ ব্যবহার করে যে পরিমান বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয় তার সিকি ভাগও ভোলা পেলে,ভোলা কখনও অন্ধকারে থাকবেনা।বিডিএফআই সবসময় "ভোলার পক্ষে ভোলার পাশে" এ স্লোগান সামনে নিয়ে ভোলার বিদ্যুৎ সমস্যা কি ভাবে সমধান হবে এ নিয়ে চিন্তা ভাবনা করতে থাকে।বিডিএফআই বুঝতে পারলেন যে বর্তমান বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের মাননীয়  সচিব জনাব ড.সুলতান আহমেদ এবং পিডিবি এর ডাইরেক্টর এডমিন সরকারের অতিরিক্ত সচিব জনাব জহিরুল হক দুইজনই ভোলার কৃতি সন্তান।বিদ্যুৎ সমস্যা সমধানের এখনেই সময়,যে চিন্তা সেই কাজ। বিডিএফআই আন্তর্জাতিক সমন্বয়ক জনাব এম জহিরুল আলমকে আহবায়ক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব মাহফুজুর রহমানকে সদস্য সচিব করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি বিদ্যুৎ সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়া।আহবায়ক ও সদস্য সচিব ১ মাস বহু শ্রম মেধা দিয়ে পুরো কমিটির মাধ্যমে একটি রূপরেখা দাড়া করান।১৩ টি দাবী রেখে ৩৮ পৃষ্ঠার একটি রূপরেখা তৈরী করেন।
এর পর ১৩/০৭/২০২০ তারিখে বিকাল ৩ টায় বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের সাথে বিডিএফআই এর ২ ঘন্টা ব্যাপী অন লাইন সভা অনুষ্ঠিত হয়।সভার শুরুতে মাননীয় বিদ্যুৎ সচিব মহোদয় আলোচক উভয় পক্ষকে ধন্যবাদ প্রদান করেন।অতপর বিদ্যুৎ সমন্বয় কমিটির আহবায়ক জনাব এম জহিরুল আলম ৩৮ পৃষ্ঠার রূপরেখা ১৩ দাবী সাবলীল ভাবে উপস্থাপন করেন।রূপরেখার আলোকে গুরুত্বপূর্ন মতামত তুলে ধরেন সাবেক খাদ্য সচিব বর্তমানে জাপানের রাষ্টদুত বিডিএফআই এর উপদেষ্টা জনাব শাহাবুদ্দিন আহমেদ,
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সচিব,পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ভোলার গর্বিত সন্তান জনাব আবুল কালাম আজাদ,
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব,পিডিবি এর ডাইরেক্টর এডমিন জনাব জহিরুল হক,
জনাব ফজলুল কাদের মজনু মোল্লা,সভাপতি ভোলা জেলা আওয়ামীলীগ।
জনাব মাহাবুবুর রহমান হিরন, সাবেক প্রেসেডিয়াম যুবলীগ,
বাংলাদেশ সরকারের সিআইপি,বিবিএস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব ইন্জিনিয়ার আবু নোমান হাওলাদার।বিডিএফআই সম্মানীত  সভাপতি লায়ন আবুল কাশেম এমজেএফ, সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব মাহফুজুর রহমান,সাধারন সম্পাদক জনাব এম এ মজিদ,যুগ্ন সম্পাদক জনাব বশির উদ্দিন ও জাকির হোসন,
সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব
মিজানুর রহমান ও জনাব হোসেন সোহরাব উদ্দিন শাহ।রাজশাহী সার্কেল সভাপতি জনাব মিয়া জগলুল শাহদত,চট্টগ্রাম সার্কেল সভাপতি জনাব বাহার।অতপর বিডিএফআই এর ১৩ টি দাবীর সাথে একাত্মতা ঘোষনা দিয়ে মতামত প্রদান করেন,জনাব মোঃ বেলায়েত হোসেন, মাননীয় চেয়ারম্যান, পিডিবি।
জনাব গোলাম কিবরিয়া,ব্যবস্থাপনা পরিচালক, পিজিসিবি।
মেজর জেনারেল মঈন উদ্দিন (অব:)
মাননীয় চেয়ারম্যান, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড।
জনাব সফিক উদ্দিন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক,ওজোপাডিকো।সর্বশেষ সভার সভাপতি জনাব ড.সুলতান আহমেদ,মাননীয় সচিব বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয় সবার কথার আলোকে ঘোষনা দেন যে বিডিএফআই ১৩ দাবী বাস্তবায়নে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজা সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজা সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক





খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, 
( ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি) 



ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে  ১৫ জুলাই বুধবার  মাদক উদ্ধার করেন।এ সময়  অভিযান পরিচালনা করে আসামী ১। মোঃ আল আমিন (২০), পিতা-মোঃ নিহাল উদ্দিন বিশ্বাস, সাং-কিস মত হরিশংকরপুর, থানা ও জেলা-ঝিনাইদহ কে ২১০ (দুইশত দশ) গ্রাম অবৈধ মাদকদ্রব্য গাঁজা সহ আটক করেন। আকক কৃত মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ বিষয়  ঝিনাইদহ সদর থানায় নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে।

কয়রা নবাগত ইউএনও'র পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা

কয়রা নবাগত ইউএনও'র পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা






 কয়রা খুলনা প্রতিনিধি :- খুলনা কয়রা  উপজেলার নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাসের সাথে উপজেলা প্রশাসনের অফিসার বৃন্দ ,মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সাংবাদিক ও পেশাজীবি সংগঠনের প্রতিনিধিদের পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বুধবার ১৫ জুলাই  বিকালে উপজেলা পরিষদের হল রুমে প্রশাসনের আয়োজনে  উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি নুরে -ই আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা  চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এস এম শফিকুল ইসলাম ।
ইউআরসি নাজমুল হুদার পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন কয়রা সদর ইউ পি চেয়ারম্যান মোঃ হুমায়ুন কবির, দক্ষিণ বেদকাশী ইউ পি চেয়ারম্যান জি এম কবি শামসুর রহমান, অধ্যক্ষ ডঃ চয়ন কুমার রায়, নির্বাচন অফিসার মোঃ হজরত আলী, যুব উন্নয়ন অফিসার আব্দুর রশিদ, সাংবাদিক মোস্তফা শফিকুল ইসলাম, মোঃ রিয়াছাদ আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান বিশিষ্ট আইনজীবি এ্যাডঃ আরাফাত হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম (টিংকু) প্রমুখ।

পরিচিতি ও মতবিনিময় সভায় নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাস বলেন, সরকারি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় দ্রুত পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে উপজেলা প্রশাসন। স্থানীয় বিশিষ্টজনদের পরামর্শ ও  স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে সন্ত্রাস, মাদক ও দুর্নীতি হটিয়ে কয়রাকে একটি আলোকিত  উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলা হবে। সবার সহযোগিতা পেলে কয়রা  হবে দেশের সেরা উন্নত ও সমৃদ্ধ উপজেলা। তিনি আরও বলেন,  করোনা ভাইরাসের মহামারীতে ও আম্পান ক্ষতিগ্রস্ত কয়রা উপজেলার মানুষকে নিরাপদে রাখতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো।সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন ,
সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। তাছাড়া স্থানীয় বাসিন্দা হিসেবে আপনারা জানেন কোথায় কি হয়। সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসুচী বাস্তবায়ন করা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রধান দায়িত্ব। সমাজের নানা অনিয়ম ও বিধি বহির্ভূত কর্মকান্ড সহ আইন-শৃঙ্খলার বিষয়টিও দেখভাল করতে হয়। সুষ্ঠভাবে দায়িত্ব পালনের স্বার্থে আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। 

সাংবাদিকরা তাদের বক্তব্যে কয়রা উপজেলার বিভিন্ন সমস্যা, করণীয় ও সম্ভাবনার বিষয় তুলে ধরেন এবং সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

অসুস্থ ছেলের পাশে দাড়ালো,উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠন

অসুস্থ ছেলের পাশে দাড়ালো,উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠন


,
 মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ 
উমরমজিদ ইউনিয়নের  ঘুমারুভীমশীতলা মৌজার  খাইরুল ইসলাম কিছুদিন আগে অটোরিকশা এক্সিডেন্টে তার পা ভেংগে যায়, ছেলেটি তার পরিবারের একমাত্র উপার্জন করা ব্যক্তি ছিলো।  করোনার এই সময়ে এবং বন্যায় যখন অসহায় পরিবার গুলো খুবই কষ্টে দিন যাপন করছে ঠিক এই সময়ে পরিবারের একমাত্র ছেলেটি এক্সিডেন্ট হওয়ায় পরিবারটি খুবই বিপদের মধ্যে রয়েছে। এমতাবস্থায় ছেলেটির পায়ের অপারেশন করার প্রয়োজনীতা দেখা দেওয়ায় তারা দুঃচিন্তায় পরেছে। বিনা চিকিৎসায় তার পায়ের অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। এমন সময় আমাদের  "উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ সংগঠন" টির  কার্যনির্বাহী কমিটির একজন সদস্য মারফত সংগঠনের কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। 

আজ ১৫ জুলাই  রোজ বুধবার  বিকেলে "উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ এবং ব্লাড ব্যাংক " এর পক্ষ থেকে চিকিৎসার খরচের জন্য কিছু নগদ অর্থ প্রদান করা হয়।  ছেলেটি অসুস্থ হয়ে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি থাকায় তিনি সশরীরে উপস্থিত হতে পারেন নি। অসহায় অসুস্থ রোগীর প্রতিনিধি হিসেবে তার মা খুশি বেগমের  হাতে অনুদানের অর্থ তুলে দেয়া হয়। অসুস্থ ভাইয়ের বাসায় এই অর্থ হস্তান্তর করা হয়। যাহা চিকিৎসার জন্য সামান্য অর্থ।এই দুর্যোগ কালীন সময়ে সবাই বর্তমানে আর্থিকভাবে সংকটে থাকায় আমরা সামান্য কিছু অনুদান দিয়েছি।

 এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের দপ্তর বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক বিদুৎ আনসারী,কর্মসুচি ও  পরিকল্পনা যুগ্ন সম্পাদক আক্কাস আলী, পরিবেশ বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক মাশুক রাব্বি, সাস্থ্য বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক মেহেদী হাসান, 
প্রচার বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক  রাহুল,  শিক্ষা বিষয়ক  যুগ্ন সম্পাদক ইয়ামিন সরকার এবং সংগঠনের অন্যতম সদস্য মোস্তফা উপস্থিত ছিলেন। 

নগদ অর্থ হস্তান্তরের পর উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ সংগঠনের  প্রতিনিধিগণ অসুস্থ ছেলেকে আগামীতে দেখা করার প্রত্যয় ব্যক্তি করেন এবং ছেলেটির সুস্ততা কামনা করে দোয়া করেন।  অসুস্থ ছেলেটির মা  সংগঠন ও সংগঠনের সদস্যদের জন্য মনভরে দোয়া করেন এবং তার পরিবার, অসুস্থ ছেলে এবং দেশের মানুষের জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন। 

চিকিৎসার খরচ ব্যায়বহুল হওয়ার কারণে চিকিৎসার জন্য শুধুমাত্র উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠনের প্রচেষ্টায় প্রদত্ত এই অনুদান যথেষ্ট নয়। তাই তিনি সচ্ছল ব্যক্তিবর্গের কাছে চিকিৎসার খরচ বহনের জন্য আরো অর্থ সাহায্য প্রার্থনা করেন। তার পাশে দাড়ানোর জন্য উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ  এর পক্ষ থেকে দয়াশীল ব্যাক্তিদের প্রতি আহবান জানানো যাচ্ছে। 

রোগীর নামঃ মোঃ খাইরুল ইসলাম। 
পিতার নামঃ নুরজামাল ইসলাম 
মাতার নামঃখুশি বেগম 
মৌজার নামঃ ঘুমারুভীমশীতলা
গ্রামের নামঃ মৌলভীপাড়া

উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ এবং ব্লাড ব্যাংক সংগঠন।

নবীনগরে বহুল প্রতীক্ষিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের উদ্বোধন আগেই কার্যক্রম চালু

নবীনগরে বহুল প্রতীক্ষিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের উদ্বোধন আগেই  কার্যক্রম চালু




এস.এম অলিউল্লাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে বহুল প্রতীক্ষিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।
পৌর এলাকার নারায়ণপুরে দীর্ঘ এক বছর আগে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভবন নির্মাণকাজ শেষ হলেও উদ্বোধনের অপেক্ষায় ছিল এতো দিন।

এরই মধ্যে নবীনগর বাজারে অগ্নিকাণ্ডে বাজার কমিটির সভাপতি মনির হোসেন এর ভবনে আগুন লেগে অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার পর নির্মিতব্য ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস ষ্টেশনটি উদ্বোধন করার দাবিতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

তারই প্রেক্ষিতে নড়েচড়ে বসে নবীনগর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল।
তাৎক্ষণিকভাবে নবীনগর উপজেলাকে অনাকাঙ্ক্ষিত অগ্নিকাণ্ডে রোধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান তিনি।

এমন পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করার আগেই প্রয়োজনীয় জনবলসহ অন্যান্য অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রপাতি গাড়ি ও মালামাল বরাদ্দ দেয়।

দ্বিতীয় শ্রেণীর মর্যাদা পাওয়া নবীনগর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস ষ্টেশনটিতে দুই ইউনিটে একজন সাব অফিসার, দুইজন লিডার, ফায়ারম্যান ১৩ জন ও দুইজন ড্রাইভার কর্মরত থাকবেন, ১টি ফাস্টকল গাড়ি, ১টি দ্বিতীয় কল গাড়ি রয়েছে।

কাজের পরিক্ষামুলক কার্যক্রম পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম, ওসি প্রভাষ চন্দ্রধর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনসের উপ সহকারী পরিচালক মোঃ তানহারুল ইসলাম সহ যুবলীগ ছাত্রলীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় গণমাধ্যম কর্মীদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনসের উপ সহকারী পরিচালক মোঃ তানহারুল ইসলাম বলেন, আমাদের স্টেশনটিতে এখনো প্রয়োজনীয় জনবল ও সরঞ্জামাদি অভাব রয়েছে, পর্যাক্রমে সকল উপকরণ সংযুক্ত করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম বলেন, নবীনগরের মানুষের প্রাণের দাবী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস স্টেশনটি সারাদেশের ন্যায় উদ্বোধনের অপেক্ষায় ছিল, কিন্তু অতিসম্প্রতি ঘটে যাওয়া নবীনগর বাজারের অগ্নিকাণ্ড আমাদের প্রয়োজনীয়তাকে তীব্র করে তুললে আমরা বিষয়টি নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করি।
মাননীয় এমপি মহোদয় বিষয়টি নিয়ে জোর তদবির করে কার্যক্রম পরিচালনার ব্যবস্থা করেন।

স্থানীয় সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল মুঠোফোনে জানান, নবীনগরে নির্মিতব্য ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস স্টেশনটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার কথা ছিল।
কিন্তু নবীনগরের একাধিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আমি বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করেছি তাই আজ কার্যক্রম চালু হচ্ছে।
সেই জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে নবীনগরবাসীর পক্ষ থেকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

পরে উপস্থিত সবাইকে মিষ্টিমুখ করান নবীনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক পারভেজ হোসেন।
স্টেশনের বর্তমানে সরকারী মোবাইল নাম্বার ২৪ ঘন্টা খোলা থাকবে।
নাম্বারটি হল 01736619010

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গাঁজা সহ আটক ২ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গাঁজা সহ আটক ২ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী


কুষ্টিয়া প্রতিনিধি/ শ্যামা সাহাঃ

দৌলতপুরে বিশেষ অভিযান চালিয়ে সাত কেজি পাঁচশত গ্রাম গাঁজাসহ মোছাঃ তিলকজান খাতুন (৪৫) এবং মোছাঃ হাজেরা খাতুন (৬০) নামে দুই মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে দৌলতপুর থানা পুলিশ। কুষ্টিয়া, দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এস,এম আরিফুর রহমান এর নির্দেশে অভিযান পরিচালনা করে এস আই(নিঃ) মোঃ সুলতান আজম সঙ্গীয় অফিসার এ এস আই(নিঃ) মোঃ গোলাম মাবুদ ও ফোর্স সহ ইং-১৫-০৭-২০ খ্রিঃ সকাল অনুমান ১০.১০ ঘটিকার সময় দৌলতপুর থানাধীন দৌলতপুর থানাধীন শেহালা দক্ষিনপাড়া গ্রামস্থ জনৈক মোঃ জামসেদ (৪৪), পিতা-জামাত আলী এর বাড়ীর পশ্চিম পাশে পাঁকা রাস্তার উপর হইতে মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করেন।

দিনাজপুরে আলোর পথে জাগো যুব-এর মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন

দিনাজপুরে আলোর পথে জাগো যুব-এর  মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন



মামুনুর রশিদ, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে আত্ন  কর্মসংস্থান বিষয়ক কার্যক্রমোর অংশ হিসেবে ১৫ জুলাই বুধবার সকাল ১১টায় আলোর পথে জাগো যুব, দিনাজপুর এর আয়োজনে কেবিএম কলেজ হল রুমে শতাধিক প্রশিক্ষনার্থীদের সমন্বয়ে ২দিন ব্যাপী ঝিনুক থেকে মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়েছে। উক্ত ২দিন ব্যাপী কর্মশালাটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম।
অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবুল কালাম আজাদ এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন কেবিএম কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ জিয়াউল হুদা, পাটোয়ারী বিজনেস হাউজ প্রোঃ লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সহিদুর রহমান পাটোয়ারী মোহন, রাফু সফট,দিনাজপুর এর সিইও মোঃ রাফায়েত হোসেন রাফু, আলোর পথে জাগো যুব’র উপদেষ্টা চেয়ারম্যান মোঃ মকিদ হায়দার শিপন প্রমূখ।
মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, এই মহামারি করোনার প্রাক্কালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ বিভিন্ন সেবা মূলক এনজিও এবং সমাজ সেবা মুলক প্রতিষ্ঠান গুলোর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সেই সাথে বিভিন্ন এলাকার যুবকেরা কর্মহীন হয়ে বসে রয়েছে আর এই সময় তাদের বেকারত্ব দুরিকরনের দিক চিন্তা করে এই সংগঠনটি যে উদ্যেগ গ্রহণ করেছে আমি তাদের অভিনন্দন জানাই। তিনি আরও বলেন, এই প্রশিক্ষণ শেষে দিনাজপুরের আগ্রহী যুবকদের মুক্তা চাষের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দিনাজপুরের রাম সাগরের দিঘিটি মুক্তা চাষিদের জন্য বরাদ্দ দেয়ার ব্যবস্থা করে দিব।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন আলোর পথে জাগো যুব, দিনাজপুরের সভাপতি মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন।

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত -১

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত -১





মাহফুজা আক্তার (মাটিরাঙ্গা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা)প্রতিনিধি

আনুমানিক আজ (১৫ জুলাই)  রাত ৭ঃ৩০ টার সময় গুইমারার বাইল্যাছড়ি (বুদুমপাড়া) মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় রেজাউল (২১) নামের একজন নিহত হয়েছেন। 
নিহতের বাড়ি জালিয়াপাড়া (বরপিলাক) বলে জানা গেছে।  

মোটরসাইকেলে যাত্রা পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

মোহনগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর আব্দুল মমিনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

মোহনগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর আব্দুল মমিনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত


 

আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি

 বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, সাবেক খাদ্য, ত্রাণ-পুনর্বাসন ও কৃষি মন্ত্রী আব্দুল মমিনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে।

এ উপলক্ষে বুধবার (১৫ জুলাই) প্রয়াত নেতার জন্মস্থান নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে আব্দুল মমিন স্মৃতি পরিষদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের দুইটি অংশ দিনব্যাপী পৃথক কর্মসূচির আয়োজন করে। 

কর্মসূচির মধ্যে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, মরহুমের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও মাল্যদান, কালো ব্যাজ ধারণ, কবর জিয়ারত, মিলাদ মাহফিল, কাঙালি ভোজ ও আলোচনাসভা।

সকাল ১০টায় প্রয়াত জননেতার কবরে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র লতিফুর রহমান রতনের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের একটি অংশের নেতাকর্মীরা।  পরে বেলা ১২টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শহীদ ইকবালে নেতৃত্বে অপর অংশের নেতাকর্মীরা।

মোহনগঞ্জে চোরাই বিদ্যুতে শিয়ালজানি খালের উন্নয়ন কাজ

মোহনগঞ্জে চোরাই বিদ্যুতে শিয়ালজানি খালের উন্নয়ন কাজ






আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি (নেত্রকোনা):
 নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের ছড়াছড়ি। পৌরশহরের শিয়ালজানি খালের দুই পাশে স্টিলের রেলিং বসানোর কাজে বৈদ্যুতিক খাম্বা থেকে অবৈধভাবে সংযোগ দিয়ে ড্রিল মেশিন ব্যবহার করছেন ঠিকাদার। 

ইতিমধ্যে সরকারি পাইলট স্কুলের ছয়তলা ভবন নির্মাণে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবহারের ঘটনার এলাকায় সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার শিয়ালজানি খালের উন্নয়ন প্রকল্পে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ড্রিল মেশিন চালানোর তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এর দুই দিন আগেও পৌরশহরের রাউত পাড়া এলাকায় ড্রেন নির্মাণ কাজে রড কাটার কাজে অবৈধ সংযোগ ব্যবহার করা হয়। এ সময় সংযোগ লাগাতে গিয়ে শামীম মিয়া নামে এক শ্রমিক বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

সম্প্রতি বিদ্যুতের ভুতুরে বিলের জন্য এসব অবৈধ সংযোগকে দায়ী করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন গ্রাহকরা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, শিয়ালজানি খালের দুই পাড়ে রেলিং বসানো কাজের বরাদ্ধ এক কোটি ৬০ লাখ টাকা। ময়মনসিংহের এম রহমান নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এ কাজটি করছে। ইতিমধ্যে বেশি অর্ধেক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তবে পুরো কাজেই অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগে করা হয়েছে।

বুধবার (১৫ জুন) সরেজমিন এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। এ সময় শিয়ালজানি খালপাড়ে ড্রিল মেশিন চালাচ্ছেন শ্রমিক বাবলু ও মতিউর রহমান। তারা জানান, ঠিকাদার ও পাউবো কর্মকর্তাদের নির্দেশেই খাম্বা থেকে সংযোগ নিয়ে কাজ করছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের(পাউবো) উপ-সহকারী প্রকৌশলী সোহাগ ফকির বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, 'আমি নতুন জয়েন করেছি। এই বিষয়ে তেমন জানি না। আর বক্তব্য দিতে হলে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে দিতে হবে।' বিস্তারিত জানতে উপ বিভাগীয় প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের বিষয়টি স্বীকার করে পাউবো'র উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী অমিতাব চৌধুরী বলেন, আশেপাশে বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছিল না তাই এভাবে খাম্বা থেকে লাইন টেনে কাজ করা হচ্ছে। আর কয়দিনেই মধ্যেই কাজটি শেষ হয়ে যাবে। তবে এই বিষয়টি নিয়ে কিছু না লিখার জন্যও তিনি জানান।

তবে এ বিষয়ে তিনি অবগত নন বলে জানান মোহনগঞ্জ জোনাল পল্লীবিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম বিপ্লব কুমার পাল।

আশাশুনিতে কার্পেটিং রাস্তার উপর বাঁশের সাঁকো, ৫৮ দিনেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সওজ,

আশাশুনিতে কার্পেটিং রাস্তার উপর বাঁশের সাঁকো, ৫৮ দিনেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সওজ,





 আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি:  সুপার সাইক্লোন আম্পানে খোলপেটুয়া নদীর বাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের পানি প্রবাহিত হয়ে সড়ক ও জনপদ বিভাগের আশাশুনির মাড়িয়ালা থেকে ঘোলা ত্রিমোহনী পর্যন্ত প্রায় ৩ কি.মি. সড়কের ৭টি স্থানে ভেঙ্গে বিস্তীর্ণ এলাকায় আজও জোয়ার-ভাটা বয়ে চলেছে। এর মধ্যে ৩টি স্থানে একেবারে গভীর হয়ে যাওয়ায় সেখানে বাঁশের সাঁকো দিয়ে বানভাসী মানুষ যাতয়াত করছে। আম্পানের পর আজ ৫৮ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত সড়ক ও জনপদ বিভাগ নির্মানাধীন জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি সংস্কারের কোন পদক্ষেপ নেয়নি বলে ক্ষুব্ধ বানভাসী এলাকাবাসী। খুলনার কয়রা, শ্যামনগর ও কালীগঞ্জের এক অংশ এবং আশাশুনি উপজেলার দক্ষিণ অঞ্চলের সাথে একমাত্র যোগাযোগর মাধ্যম হচ্ছে এই সড়ক। সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে দক্ষিণ অঞ্চলে দূর্গত মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, জরুরী ঔষধ পরিবহন ও সুপেয় পানি পৌছাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। শ্রীউলা ইউনিয়নের মাড়িয়ালা বাজার থেকে প্রতাপনগর ইউনিয়নের ঘোলা বাসষ্ট্যা- পর্যন্ত ৩ কি.মি. সড়কের উপর দিয়ে নদীর জোয়ার-ভাটা চলতে থাকায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। ভুক্তভোগীরা বলেন প্লাবিত এলাকার দূর্গত মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, জরুরী ঔষধ পরিবহন ও সুপেয় পানি পৌছাতে কি পরিমানে হিমসিম খেতে হচ্ছে সেটা না দেখলে বুঝতে পারবেন না। ছোট ছোট শিশু, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কলিমাখালী গ্রামের ৬৫ পরিবার কলিমাখালী প্রাইমারি স্কুলে (২৩), নাসিমাবাদ সাইক্লোন সেল্টারে (২৭) ও মাদ্রাসায় (১৫) আশ্রয় নিয়ে করোনার মধ্যেও গাদাগাদি হয়ে বসবাস করছে। পানিবন্দী গ্রামগুলোর অধিকাংশ বাড়ীই তাদের ভিটার উঁচু স্থানে বাঁশের মাঁচা করে নিয়ে তার মধ্যেই মানবেতর জীবন যাপন করছে। সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় জোয়ারের সময় নৌকায় আর ভাটায় পায়ে হেঁটে চলা ছাড়া কোন উপায় নেই। এসব এলাকার মানুষ তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র কিনতে মাড়িয়ালা ও নাকতাড়া কালীবাড়ি বাজার পর্যন্ত আসতেই তাদের হিমসিম খেতে হচ্ছে। সরকারি বেসরকারি ত্রান কম-বেশি পৌঁছালেও চাহিদার তুলনায় সেগুলো নেহাতই অপ্রতুল। স্থানীয় সাংবাদিক ডা. শাহজাহান হাবিব জানান, ভেঙ্গে যাওয়া ও ক্ষতিগ্রস্ত এ দুর্গম সড়ক দিয়ে কত কষ্ট সহ্য করে কিভাবে মানুষ চলাচল করছে সেটা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। সুপেয় পানির জন্য মানুষের হাহাকার যেমন আছে অমূল্য এই পানি বহন করে বাড়ী নিয়ে যাওয়া নিত্য সংগ্রামের মত। এছাড়া বিদ্যুৎ বিহীন অন্ধকারে থাকতে হচ্ছে। এছাড়া প্রায় দু’মাস কেউ মিষ্টি পানিতে গোসল পর্যন্ত করতে পারেনি। অনতিবিলম্বে ভেঙ্গে যাওয়া হাজরাখালি বাঁধটি নির্মান করে এলাকায় জোয়ার-ভাটা বন্ধ করতে না পারলে মানুষের দুর্ভোগ বাড়তেই থাকবে। শ্রীউলা ইউনিয়নের ভেঙ্গে যাওয়া হাজরাখালি বাঁধটি নির্মান করে এলাকায় জোয়ার-ভাটা বন্ধ করতে অবিলম্বে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বানভাসী মানুষ।