কোভিড যোদ্ধা চিকিৎসকদের স্মরণে দোয়া ও বৃক্ষরোপণ

কোভিড যোদ্ধা চিকিৎসকদের স্মরণে দোয়া ও বৃক্ষরোপণ





নিউজ রিপোর্টঃ  
করোনা ভাইরাস (কোভিড ১৯) চিকিৎসার দেওয়ার সময় যেসব ডাক্তার একই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে তাদের বিদেহী আত্নার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও বৃক্ষরোপণ করেছে হেল্প বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন (এইচবিএফ) ও নির্ভয় ফাউন্ডেশন। বগুড়ার গাবতলি থানায় তারা এ বৃক্ষরোপণ করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন এইচবিএফের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক আবুল বাশার মিরাজ, সিইও আব্দুল্লাহ্ আল ফাত্তাহ্, অ্যাকাউন্টস্ ম্যানেজার সাকিবুল ইসলাম, ভলেন্টিয়ার ফাহাদ,  জাকারিয়াসহ এলাকার একদল তরুণ।

বৃক্ষরোপণের বিষয়ে জানতে চাইলে এইচবিএফের প্রতিষ্ঠাতা আবুল বাশার মিরাজ বলেন, এ সময়ের সাহসী যোদ্ধা হচ্ছেন চিকিৎসকরা। আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা যেমন বুকে সাহস নিয়ে কম জনবল আর অস্ত্র নিয়ে শত্রুদের মোকাবেলা করেছিলেন ঠিক তেমনি আমাদের দেশের চিকিৎসকরাও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কম সুরক্ষাসামগ্রী নিয়ে ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে আত্নহুতি দিয়েছেন। তাদের ভূমিকার কারণেই আমাদের মত উন্নয়নশীল দেশে মৃত্যু অনেক কম।  চিকিৎসক সেসব পরিবার যেন এ শোক কাটিয়ে উঠতে পারে তার জন্য দোয়া করেছি ও তাদের করোনা যোদ্ধা চিকিৎসকদের স্মৃতি রক্ষায় বৃক্ষরোপণ করেছি।

বাসা ভাড়া সংকটে জবি শিক্ষার্থীদের পাশে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা

বাসা ভাড়া সংকটে জবি শিক্ষার্থীদের পাশে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা






জবি প্রতিনিধিঃ করোনাভাইরাস মহামারীতে মেস ভাড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছে সম্পূর্ণ অনাবাসিক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর শিক্ষার্থীরা। দীর্ঘদিন ধরে আয়ের পথ টিউশনি ও পার্টটাইম জব বন্ধ থাকায় বাসা ভাড়া জোগাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। 


বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থীই টিউশনির মাধ্যমে শিক্ষা ব্যয় নির্বাহ করে। ব্যক্তি বিশেষ পরিবারকেও সহায়তা করে। করোনার এই মহামারির সময়ে টিউশনি না থাকায় তাদের মধ্যে আর্থিক অস্বচ্ছলতা দেখা দিয়েছে। এই অবস্থায় শিক্ষার্থীদের জন্য মেস ভাড়া দেয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। তাদের মধ্যে অসহায় হয়ে পড়েছেন তুলনামূলক দরিদ্র পরিবার থেকে আসা শিক্ষার্থীরা।


এদিকে দেশের বিভিন্ন স্থানে থাকা শিক্ষার্থীদের থেকে অভিযোগ আসছে ভাড়া আদায় করতে ফোনে হুমকি ও মানসিক নির্যাতন করছেন মেস মালিকরা। বৈশ্বিক এ সংকটে টিউশন বন্ধ থাকায় কোন ধরনের আয় নেই তার ওপর মেস মালিকদের বা বাড়িওয়ালাদের ভাড়া পরিশোধের চাপ শিক্ষার্থীদের সংকটকে বহুগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। এমতাবস্থায় অনেক শিক্ষার্থীরাই  দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।



শিক্ষার্থীদের এসকল মেস ভাড়া সমস্যার সমাধানের জন্য শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কমিটি গঠন করা হলেও তেমন কোনো সাড়া পাওয়া যায় নি, নিশ্চুপ রয়েছে তথাকথিত ১৯ ছাত্রনেতার সক‌লেই। এমতাবস্থায় শিক্ষার্থীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়ার নানা সংকটে পাশে দাড়িয়েছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। যেসকল শিক্ষার্থী মেসের ভাড়া এবং মালামাল নিয়ে সমস্যায় পড়ছে তাদের কাছে ছুটে যাচ্ছে তারা। মেস মালিকদের সাথে কথা বলে ভাড়ার বিষয়ে সমঝোতা করছে। মালামাল নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছে দিতে নিরলসভাবে সহায়তা করছে ছাত্রলীগের এসকল নেতাকর্মীরা।



করোনাভাইরাসের মহামারীর এই সময়ে শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া সমস্যা সংকট নিরসনে এগিয়ে এসেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের শীর্ষ স্থানীয় নেতা কর্মীরা। এরা হলেন

সৈয়দ শাকিল, নাহিদ পারভেজ, ইব্রাহীম ফরাজী, আক্তার হোসেন, তা‌রেক অা‌জিজ, শান্ত নাজমুল বাবু, অঞ্জন চৌধুরী পিংকু, কামরুল হোসেন প্রমুখ।  বাড়িওয়ালাদের সাথে কথা বলে ভাড়া অনেকাংশে কমিয়ে আনছেন তারা। 
তাছাড়া অন্যদিকে ছাত্রলীগ কর্মী কনিক স্বপ্নিল, ক‌ম্পিউটার সাইন্স এর শাহীনুর রহমান ও তার সহযোগীদের নিয়েও শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া সমস্যা সমাধানে এগিয়ে এসেছেন। যেসব শিক্ষার্থীরা মেস ছেড়ে দিচ্ছেন তাদের মালপত্র রাখতে নিজ উদ্যোগে বাসা ভাড়া নিয়ে সেখানে জিনিসপত্র রাখছেন। এতে অনেক শিক্ষার্থীরাই অনেকটা স্বস্তিতে ফিরছেন।


এ ব্যাপারে কনিক স্বপ্নিল বলেন, যেসকল শিক্ষার্থী ভাড়া দিতে পারছে না তাদের সমস্যার সমাধান করা হচ্ছে। মেস ছেড়ে দিলে যাবতীয় মালামাল রাখার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মেস মালিকদের সাথে আরো নানা রকম সমস্যা হয় সেকল ব্যাপারে মুঠোফোনে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। বাড়িওয়ালাদের সাথে কথা বলে ভাড়া অনেকাংশে কমিয়ে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক উপ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক নাহিদ পারভেজ বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অতীতের ন্যায় সবসময়  সকল প্রকার মানবিক কাজের    অগ্রসৈনিক। বর্তমানে সারা বিশ্ব তথা বাংলাদেশের এই করোনা মহামারির জন্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের বাসা ভাড়ার সমস্যা সমাধানে মানবতার মা জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সম্মানিত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ভাই ও সাধারণত সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য দাদার তদারকিতে আমরা  বাসা বাসা গিয়ে মানবিক আবেদন নিয়ে হাজির হয়ে সমাধান করতেছি৷ অতীতের ন্যায় সকল দূর্যোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এই ধরনের সকলপ্রকার মানবিক কাজ অব্যহত থাকবে।

হাইতকান্দি ইখওয়ান পাঠাগারের বৃক্ষরোপন কর্মসূচি

হাইতকান্দি ইখওয়ান পাঠাগারের বৃক্ষরোপন কর্মসূচি

 

মিরসরাই প্রতিনিধি
গাছে গাছে সবুজ দেশ আমার সোনার বাংলাদেশ এই শ্লোগানে মিরসরাই উপজেলার ১৪নং হাইতকান্দি ইউনিয়নে ইখওয়ান ইসলামী পাঠাগারের বৃক্ষরোপন ও বিতরণ কর্মসূচি সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রুবার (১০ জুলাই) স্বেচ্ছাসেবী  সংগঠন ইখওয়ান পাঠাগারের পক্ষ থেকে ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা বিতরন ও রোপন করা হয়।
সংগঠনের সদস্যদের অংশগ্রহণে সফলভাবে এই আয়োজন শেষ হয়।

প্রতিপক্ষের হামলায় চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সহ আহত -২

প্রতিপক্ষের হামলায় চৌগাছা উপজেলা  ছাত্রলীগের সভাপতি সহ আহত -২
 



নিউজ ডেস্কঃ   প্রতিপক্ষের হামলায় চৌগাছা_উপজেলা_ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম হোসেনসহ ২ জন মারাত্মক আহত। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।
শুক্রবার রাত ৮ঃ১৫ মিনিটের দিকে উপজেলার বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ব্রিজের নিকটে এঘটনা ঘটে।
বিস্তারিত আসছে------  

হবিগঞ্জে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা নতুন করে আরও ২৯জনের করোনা শনাক্ত

হবিগঞ্জে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা নতুন করে আরও ২৯জনের করোনা শনাক্ত




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জ জেলা উপজেলায়  নতুন করে আরও ২৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শুক্রবার (১০-জুলাই) ঢাকার একটি ল্যাবে তাদের করোনা শনাক্ত হয়।
হবিগঞ্জের ডেপুটি সিভিল সার্জন মখলিছুর রহমান উজ্জ্বল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তিনি জানান আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলার ১৪ জন মাধবপুর উপজেলায় ৭ জন চুনারুঘাট উপজেলার ৩ জন নবীগঞ্জ উপজেলার ৩ জন এবং বাহুবল উপজেলার ২ জন।

গত বছরের ৩১ ডিসেম্বরে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস বাংলাদেশে ধরা পরে গত ৮ মার্চ। আর সিলেট বিভাগে সর্বপ্রথম করোনাভাইরাস ধরা পড়ে গত ৫ এপ্রিল। এরপর প্রতিদিন বাড়ছে করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও।

সবশেষ শুক্রবার (১০ জুলাই) হবিগঞ্জের ২৯ জন নিয়ে সিলেট বিভাগে রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৬৬১ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৩ হাজার ৮, সুনামগঞ্জে ১ হাজার ১৫২, হবিগঞ্জে ৮৯৩ ও মৌলভীবাজার জেলায় ৬০৮ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
গেল ৪ এপ্রিল বিভাগের প্রথম রোগী হিসেবে মৌলভীবাজারের রাজনগরে এক ব্যবসায়ী মারা যান। যদিও তার করোনা শনাক্তের রিপোর্ট এসেছিল ৫ এপ্রিল। এরপর থেকে প্রতিদিন বাড়ছে মৃত্যুও সংখ্যা।

সবশেষ শুক্রবার পর্যন্ত সিলেট বিভাগে মারা গেছেন ৯৭ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৭৬, হবিগঞ্জে ৬ ও মৌলভীবাজারে ৭ জন এবং সুনামগঞ্জে ৮ জন। অন্যদিকে সিলেট বিভাগে প্রতিদিনই বাড়ছে সুস্থ রোগী সংখ্যা। গত ২৭ এপ্রিল বিভাগে প্রথম সুনামগঞ্জে দুই রোগী করোনা ভাইরাস জয় করে বাড়ি ফেরেন। এরপর প্রতিদিন বিভাগের বিভিন্ন জেলার রোগীরা করোনা জয় করে বাড়ি ফিরছেন।

আশাশুনিতে দাফন টিমকে প্রশিক্ষণ প্রদান

আশাশুনিতে দাফন টিমকে প্রশিক্ষণ প্রদান




আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তিদের দাফন কাজ স্বাস্থ্যবিধি মেনে করার উপর বিশেষ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রশিক্ষণ হল রুমে এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। 

ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের উদ্যোগে আয়োজিত প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে উপজেলা দাফন টিমের সদস্যরা অংশ নেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তির দাফন পদ্ধতি বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন, আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ফোকাল পার্সন ডাঃ .দীপন বিশ্বাস।

আশাশুনিতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ওসি'র খাদ্য সহায়তা

আশাশুনিতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ওসি'র খাদ্য সহায়তা






আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি ( সাতক্ষীরা)   প্রতিনিধিঃ  আশাশুনি সদর ইউনিয়নে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে খাদ্য সহায়তা করলেন থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ  গোলাম কবির। বৃহস্পতিবার বিকালে সাতক্ষীরা জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম (বার)এর নির্দেশনায়, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ শেখ ইয়াছিন আলীর তত্ত্বাবধানে বিজ্ঞ আদালতের অনুমতি ক্রমে আশাশুনি সদর ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ ৮০০ পরিবারের মধ্যে ১০ কেজি করে আটা বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন আশাশুনি সদর ইউপি চেয়ারম্যান স,ম সেলিম রেজা মিলন, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জনাব মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান,এস আই হাসানুজ্জামান হাসান সহ আশাশুনি থানার সকল অফিসার ও ফোর্স উপস্থিত ছিলেন।

দেশ ও জাতি একজন দক্ষ নারী নেত্রীকে হারালোঃ এমপি ইসরাফিল আলম

দেশ ও জাতি একজন দক্ষ নারী নেত্রীকে হারালোঃ এমপি ইসরাফিল আলম


 
 
 

 মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
  রাজশাহী ব্যুরো

 সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি’র মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন নওগাঁ-০৬(আত্রাই-রাণীনগর) এর স্থানীয় সংসদ সদস্য, শ্রম ও কর্মসংস্থান এবং পাট ও বস্ত্র মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ও নওগাঁ জেলা আওয়ামিলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোঃ ইসরাফিল আলম এমপি এমপি।

এমপি ইসরাফিল আলম এডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি’র মৃত্যুতে মরহুমার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন৷ 
এমপি ইসরাফিল বলেন, সাহারা খাতুন আজীবন মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে কাজ করে গেছেন এবং আওয়ামী লী‌গের দুঃসময়ে নেতাকর্মীদের পাশে থেকে আইনিসহ সব ধরনের সাহায্য-সহযোগিতা প্রদান করেছেন।
তিনি আরও বলেন, সততা ও ন্যায়-নিষ্ঠার সাথে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রতিষ্ঠায় তাঁর মৃত্যুতে দেশ ও জাতি একজন দক্ষ নারী নেত্রী হারালো।
সাহারা খাতুন ছাত্র জীবনেই রাজনীতিতে যুক্ত হন। তিনি ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের প্রথম মহিলা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ছিলেন।
বাংলাদেশের প্রথম মহিলা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি বাংলাদেশ সময় গতকাল বৃহস্পতিবার ০৯ জুলাই ২০২০ ইং দিবাগত রাত আনুমান ১১.৩০ মিনিটে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

শুক্রবারে যশোরে রেকর্ড, একদিনেই ১০৮ জন শনাক্ত

শুক্রবারে যশোরে রেকর্ড, একদিনেই ১০৮ জন শনাক্ত




সুমন হোসেন, যশোর প্রতিনিধি। 
যশোরে শুক্রবারে ১০৮জন শনাক্ত হয়েছেন। যা এ যাবতকালের সর্বোচ্চ। আক্রান্তদের মধ্যে যশোর সদরেই ৬০ জন। এছাড়া মণিরামপুরে ১৩, অভয়নগরে ১০, শার্শার ১০, ঝিকরগাছার ৮, কেশবপুরের ৪ ও চৌগাছার তিনজন শনাক্ত হয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন অফিসের মুখপাত্র ডাক্তার রেহনেওয়াজ রনি। তিনি জানান, যবিপ্রবি থেকে যশোরের ১৬৭ টি নমুনার ফলাফল পাঠিয়েছে তার মধ্যে যশোরের ৩৪ জন। এছাড়া খুলনা মেডিকেল ও ঢাকা  থেকে তাদের কাছে ৭৪ পজেটিভ ফলাফল পাঠানো হয়েছে। এ নিয়ে যশোরে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৯৩৭। সুস্থ্য হয়েছেন ৪শ’৩৩জন। মারা গেছেন ১৪জন।

কেশবপুর উপ- নির্বাচনে স্বস্তি আর শান্তিতে থাকতে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান : শাহীন চাকলাদার

কেশবপুর উপ- নির্বাচনে স্বস্তি আর শান্তিতে থাকতে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান : শাহীন চাকলাদার





মোরশেদ আলম
যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি 


যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার বলেছেন, দেশের শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ বিশ্বাস করে নৌকার সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষ স্বস্তিতে থাকে শান্তিতে থাকে, পরিবার-পরিজনকে নিয়ে ভালোমন্দ খেয়ে বসবাস করতে পারে, দেশে ব্যাপক উন্নয়ন হয়।
আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে, আওয়ামী লীগ যদি শক্তিশালী হয়, তবে সরকারও শক্তিশালী হয়। ঐক্যের কোন বিকল্প নাই। নেত্রীর দেওয়া নৌকা আগামী ১৪ জুলাই বিপুল ভোটের মাধ্যমে বিজয়ী করতে হবে। তিনি আরো বলেন, বিএনপি, জাতীয় পার্টি দেশের ক্ষমতায় ছিল, কিন্তু তারা দেশের মানুষের কল্যাণে কোন কাজ করেনি।
যে কারণে দেশে মানুষ এখন এক ধারায় ফিরে এসেছে। তারা নৌকার বাইরে কেউ ভোট দিতে চায় না। ভোট না থাকার কারণে বিএনপি এই উপ-নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। যে ষড়যন্ত্র কখনই সফল হবে না। আগামী ১৪ জুলাই বিপুল ভোটের মাধ্যমে নৌকাকে বিজয়ী করে ভোটাররা বিএনপির ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দিবে।
বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে সন্ধ্যারাত পর্যন্ত কেশবপুর সাগরদাঁড়ী ইউনিয়নের কাস্তা বাজার, চিংড়া বাজার ও সাগরদাঁড়ী বাজার এবং হাসানপুর ইউনিয়নের ইউনিয়ন বগা মোড় ও হাসানপুর বাজারে পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। উক্ত পথসাভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও বেনাপোল পৌর সভার মেয়র আশরাফুল আলম লিটন,
কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব কাজী রফিকুল ইসলাম, যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ, মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমা খানম, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা,
সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাগরদাঁড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত, সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ এবাদত সিদ্দিক বিপুল, সাগরদাঁড়ী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এস এম বাবর আলী, পৌর আওয়ামী লীগনেতা ইকবাল খান, সাগরদাঁড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম,
হাসানপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক ওবায়দুর রহমান ওহাব, শাহদুজ্জামান শাহীন, জি এম আলতাফ হোসেন, গৌরীঘোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সাঈদুর রহমান সাঈদ, কেশবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কাজী আজাহারুল ইসলাম মানিক, যুগ্ম-আহবায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুল প্রমুখ।

রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম অব্যাহত

রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম অব্যাহত





রিয়াজুল করিম রিজভী স্টাফ রিপোর্টার চট্টগ্রাম

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রাম জেলা ও সিটি ইউনিটের সার্বিক তত্ত্বাবধাণে যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের বাস্তবায়নে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য ও চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ শেখ শফিউল আজম এবং চট্টগ্রাম সিটি ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান এম. এ. ছালাম  এর নির্দেশনায় দিনরাত ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে জরুরী অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। অক্সিজেন সিলিন্ডার কাধেঁ নিয়ে নগরীর বিভিন্ন প্রান্তে রোগীদের কাছে পৌছেঁ দিয়ে আসছে এ সেবা কার্যক্রমের প্রশিক্ষিত যুব স্বেচ্ছাসেবকরা। তবে এই সেবা পেতে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র এবং জাতীয় পরিচয়পত্র দেখাতে হবে। ইতিমধ্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার নগরীর বেটারি গল্লি ও বহদ্দারহাট এলাকার সেবার জন্য আবেদনকৃত কোভিড, নন- কোভিড রোগীদের বাসায় পৌঁেছ দিয়েছে।
যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রামের যুব প্রধান মোঃ ইসমাইল হক চৌধুরী ফয়সালের নেতৃত্বে অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য দক্ষ ও প্রশিক্ষিত ৮ সদস্য বিশিষ্ট একটি জরুরী সেবা প্রদান টিম প্রতিনিয়ত আন্দরকিল্লাস্থ যুব রেড ক্রিসেন্ট কার্যালয়ে কাজ করে যাচ্ছে। চট্টগ্রাম মহানগরীর যেকোনো এলাকা থেকে ০১৮৪৫৮০৮৩০৩ নম্বরে ফোন করলে তাৎক্ষণিকভাবে রোগীর বাসায় অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দেওয়া হবে।

কুড়িগ্রামে ৮ জন করোনায় আক্রান্ত

কুড়িগ্রামে ৮ জন করোনায় আক্রান্ত




নিউজ ডেস্কঃ ১০ জুলাই রমেক পিসিআর ল্যাবে কুড়িগ্রাম জেলায় ০৮ জন করোনা সনাক্ত হয়েছে।
 👉কুড়িগ্রাম সদর-০১ ( মহিলা ৩৩ বছর বয়সী) 
👉নাগেশ্বরী-০৪ ( খুনিয়াগাছ,কালমতি ২৬ বছর বয়সী পুরুষ-০১ জন, নাগেশ্বরী  মনির চর- ২২ বছর বয়সী যুবতী ১ জন, হলোখানা, ভারভানি, নাগেশ্বরী- ৩৭ বছর বয়সী ১ পুরুষ ও সন্তোষপুর, ধনিগাগলা- ৩৮ বছর বয়সী ১ পুরুষ ) 
👉 চিলমারী-০২ ( কিসামত, বানুবালয় পাড়- ৩৮ বছর বয়সী মহিলা ও কিসামত, বানুনালয়, বালাবাড়ী হাট- ৪০ বছর বয়সী পুরুষ) 
👉ফুলবাড়ী-০১ ( কাশিপুর,গঙ্গারহাট- ২০ বছর বয়সী.. নারী

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে ঝিকরগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের শোক প্রকাশ

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে ঝিকরগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের শোক প্রকাশ




মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বৃহস্পতিবার ৯ জুলাই থাইল্যান্ডের একটি হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৭ বছর।

গত ২ জুন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন জ্বর, অ্যালার্জিসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে অসুস্থ অবস্থায় সাহারা খাতুনকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে ১৯ জুন সকালে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়।

এরপর অবস্থার উন্নতি হলে তাকে গত ২২ জুন দুপুরে আইসিইউ থেকে এইচডিইউতে (হাইডিপেন্ডেন্সি ইউনিট) স্থানান্তর করা হয়। পরে ২৬ জুন সকালে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আবারও তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়।

তার অধিকতর উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৬ জুলাই চিকিৎসার জন্য তাকে থাইল্যান্ড নেয়া হয়। সেখানে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন, ঝিকরগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এহসানুল হাবিব শিপলু, সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, ছাত্রনেতা ইকরামুল করিম সৈকত, আরিফ রহমান, নাঈমুর রহমান,  আরাফাত হোসেন শান্ত, হান্নান হোসেন, সাব্বির, ঝিকরগাছা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম বাপ্পি, সাধারণ সম্পাদক তৌফিক আলম কৌশিক, ছাত্রলীগ নেতা সজীব,রাহুল, মিঠু সহ ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

ফলোআপঃপাটকেলঘাটায় ত্রানের ১০০ মে/টন গম অবৈধভাবে বিক্রি, সমন্বয় রেজিস্ট্রার খাতায়

ফলোআপঃপাটকেলঘাটায়  ত্রানের ১০০ মে/টন গম অবৈধভাবে  বিক্রি, সমন্বয় রেজিস্ট্রার খাতায়




নিউজ রিপোর্টঃ
ত্রানের খাদ্য নিয়ে বিলি বিতরনে সারাদেশে বিভিন্ন জেলায় অনিয়মের চিত্র মিডিয়ায় প্রকাশ পাচ্ছে। এক শ্রেনীর জনপ্রতিনিধি ত্রান আত্মসাতের কাজে এমনভাবে জড়িয়ে পড়েছে যে,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সংসদে বছেন”কাফনের কাপড় দেওয়া হলেও এই চোরেরা পাঞ্জাবী বানাবে”। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর এই খেদোক্তি সাধারনের মাঝে ব্যপক প্রতিক্রিয়ারসৃষ্টি হয়েছে। মানুষ এই ধরনের জনপ্রতিনিধিদের ঘৃনা জানাতে শুরু করেছে। কিন্তু শুধু কি জনপ্রতিনিধি?সরকারি কর্মকর্তা,যাদের তদারকীর দায়িত্বে আছেন তারা কেন ছাড় দিচ্ছেন। তারা যদি ঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেন তবে এই জনবিচ্ছিন্ন মানুষগুলো দূ:খী মানুষের ত্রান কেড়ে খেতে পারে না। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কড়া নির্দেশ রয়েছে যেন কোন দলীয় পরিচয়ে পার না পেতে পারে।ত্রান নিয়ে স্পটে নয়ছয় করতে যেয়ে অনেক চেয়ারম্যান,মেম্বর পদ হারিয়ে আজ জেলের ঘানি টানছে। সরকার প্রধানের দৃঢ়তায় ত্রান চোরেরা ভয় পেয়ে গেছে। কিন্তু তাই বলে তাদের  অপচেষ্টা থেশে নেই। সাতক্ষীরা জেলায় সুপার ঘুর্ণীঝড় “আম্পানে"  পুরো উপকুল এলাকা তছনছ করে দিযেছে। সাতক্ষীরা জেলার আম শেষ। বেড়িবাধ ভেঙ্গে মাছের ঘের ভেসে গেছে। মানুষ দিশেহারা। সরকার ব্যাপক ত্রান কার্যক্রম পরিচালনা করে। এর মধ্যেই জেলার শ্যামনগর,কালীগজ্ঞ থেকে ত্রানের গম উদ্ধার করা হয়।মানুষের দূর্গতি এতাটাই চরমে যে, আটককৃত গম আদালতে নেয়া হলে বিজ্ঞ আদালত দূর্যোগকবলিত এলাকায় মানুষের মাঝে বিতরনের আদেশ দান করেন। সাতক্ষীরায় সর্বমহলে এই কাজ প্রশংসিত হয়েছে।ত্রান লুটেরাদের আত্মসাতের ধরন পাল্টেছে। তারা বুঝে গেছে গ্রামে গম/চল বিক্রি করা যাবে না। যতবড় নেতা হোক প্রধান মন্ত্রীর নির্দেশ সাধারন মানুষ পালন করাতে বাধ্য করবে। তাই সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা খাদ্য গুদাম। এখানে রেখে বিক্রি করা গেলে সবদিক থেকেই নিরাপদ। পাবলিক বুঝতেই পারবে না।জেলার তালা উপজেলাধীন পাটকেলঘাটা খাদ্য গুদামে ত্রানের খাদ্যশস্য ক্রয়-বিক্রয়ের একটি চক্র দীর্ঘ দিন থেকেই সক্রিয়।গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব রবিউল ইসলাম রবি জনপ্রতিনিধিদের থেকে ত্রানের খাদ্যশস্য কিনে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে থাকেন। পাটকেলঘাটা বাজারের জনৈক ব্যবসায়ীর গুদাম থেকে ত্রানের গম আটক করা হলে ব্যবসায়ীরা ভয় পেয়ে যায়। তারা গুদামের গম কিনতে আগ্রহী হয় না। এভাবে ত্রানের ১৪০ মে/টন খাদ্যশস্য জমা হয়ে যায়। ৩০ জুন কাট-অব-ডেট। শেষ মুহুর্তে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তালার অনুকুলে কিছু জিআর খাতের খাদ্য শস্য বরাদ্দ আসে। মাসের শেষ দিনে হওয়ায় প্রায়  ১৪০ মে/টন খাদ্যশস্য অবিলিকৃত রয়ে যায়। বার্ষিক প্রতিপাদনের সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এই খাদ্যযশস্য আলাদা করে রাখার জন্য খাদ্য কর্মকর্তাদের অনুরোধ করেন। সুযোগ হয়ে যায় গুদাম কর্মকর্তার তার ১০০ মে/টন গম বের করার। কিন্তু টিএনও ওঅত্যন্ত সৎ ও পরহেজগার অফিসার। তাকে কিভাবে ম্যানেজ করা যায়। সুচতুর ওসিএলএসডি রবিউল ইসলাম খুলনা থেকে গমের চলাচল সূচী আবেদন করে প্রনয়ন করাতে সক্ষম হন। ইত্যবসারে বিষয়টি জানাজানি হয়ে পড়লে,আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক খুলনা গম পরিবহনে নিষেধ করেন। প্রমাদ গোনে ওসিএলএসডি। রাতে জেলা অফিসে রাত্রিযাপন করে। বিদায়ী উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জাকির হোসেন সাতক্ষীরা যিনি জেলার দায়িত্বে । ৯ জুলাই সকালে টিসসিএফ তালা,এবং ওসিএলএসডি জনাব রবিউল ইসলাম রবি  টিএনও ওসাহেবের বাসভবনে উপস্থিত হন। টিএনও ওতালাকে বুঝানো হয় যে, খযরাতি ৪০ মে/টন চালের জন্য তার গুদাম সীলড হতে পরে। টিএনও ওতালা দয়াপরবশ হয়ে কতৃপক্ষকে জানালেন যে, অতিরিক্ত খাদ্যশস্য তার হিসাবের। আরসি ফুড খুলনা পুনরায় গম পাঠানোর অনুমতি দেন। ওসিএলএসডি খুলনার সিএসডি থেকে চলাচল সূচীর গম পাটকেলঘাটায় না এনে খুলনায় ফ্লাওয়ার মিলে বিক্রি করে দিয়েছেন। ইনভয়েসে প্রাপ্তী দেখিয়ে ত্রান খাতে  ক্রয়কৃত বাড়তি ১০০মে/টন গম সমন্নয় করে নিয়েছেন। তথ্য নিয়ে জানা যায় কোন গম পাটকেলঘাটা গুদামে আসে নাই কেবল খাতা কলমে প্রাপ্তী দেখানো হয়েছে। আর এভাবেই একজন সৎ ও পরহেজগার  টিএনও’ওর সরল বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে ১০০ মে/টন ত্রানের গম থেকে নিম্ন আয়ের সাধারন মানুষ  বঞ্চিত হলো।

৩০ জুন পাটকেলঘাটা গুদামের চালের ২৫ টি খামালে ৯২৫৫৯ বস্তায়=৩০৫৯.৬৩৭ মে/টনচাল এবং ২ টি খামালে ৩০৬৩ বস্তায়=১৮৩.৮২৪ মে/টন গম মজুদ রেকর্ড সূত্রে। বাস্তবে গমের  ৩ টি খামাল ছিল। ওসিএলএসডি পাটকেলঘাটা ২৫টি চালের খামাল থেকে  ১ থেকে ১.৫০০মে/টন অগ্রীম গুদাম ঘাটতী হিসেবে বের করে নিয়েছেন। সংগ্রহ খামাল গুলি পরিক্ষা করা হলে সত্যতা মিলবে বলে নির্ভরযোগ্য সুত্রের দাবি।  

তেঁতুলিয়া যুবলীগ নেতা আশরাফুল এর উপহার সামগ্রী বিতরণ-

তেঁতুলিয়া যুবলীগ নেতা আশরাফুল এর উপহার সামগ্রী বিতরণ-




তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নে ৩০০ পরিবারের মাঝে পর্যায়ক্রমে যুবলীগ নেতা আশরাফুল এর উপহার সামগ্রী বিতরণ।

করোনা ভাইরাস এর মহামারী থেকে বাদ পড়েনি বাংলাদেশ, প্রতিদিনি বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা নিজ অবস্থান থেকে প্রতিদিন অসহায়- নিম্ন ও মধ্যবিত্তদের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করে আসছে মানবিক ও যুবলীগ নেতা আশরাফুল। 

 একান্ত সাক্ষাকারে যুবলীগ নেতা আশরাফুল জানান, বাংলাদেশর এর মানুষ কৃষি উপর নির্ভরশীল,করোনা ভাইরাস কেড়ে নিয়েছে অনেক তাজা প্রান, এখন শুধু সৃষ্টিকর্তা ও সচেতনতাই পাড়ে আমাদের এই মহামারি প্রকোপ থেকে রক্ষা করতে। আমি অনুরোধ করবো সমাজে যারা বিত্তবান যারা আছেন তারা এই সময় অসহায় ও দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াবেন। 

যুবলীগ নেতা আশরাফুল আরো জানান তার এই কাজের পাশে সব সময় পাশে থাকার ইচ্ছা প্রকাশ  করেছেন, পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পঞ্চগড় জেলা আওয়ামীলীগের বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আনোয়ার সাদাত সম্রাট

ইতিমধ্যে ৩০০ পরিবার এর মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ এর পাশাপাশি অসুস্থ এক বৃদ্ধো লোক কে হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য আর্থিক ভাবে সহযোগিতা এবং দৈঘ্য ১২ বছর থেকে শালবাহান ইউনিয়নে এক গোরস্থানে  জানাজার নামাজ পড়ার ব্যবস্থা ছিল না সেই ব্যবস্থাও করেছেন এই যুবলীগ নেতা আশরাফুল।

নওগাঁর আত্রাইয়ে পূজা উদযাপন পরিষদের বৃক্ষ রোপন

নওগাঁর আত্রাইয়ে পূজা উদযাপন পরিষদের বৃক্ষ রোপন





 মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
  রাজশাহী ব্যুরো

 নওগাঁর আত্রাইয়ে  উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের আয়োজনে  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্ম  শতবর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।
শুক্রবার সকাল ১০টায় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে বলরামচক কেন্দ্রীয় মহাশ্মসানে একশত ফলদ এবং বনজ বৃক্ষের চারা রোপন করা হয়।
 এসময় উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সত্যেন চক্রবর্ত্তী, সাধারণ সম্পাদক বরুন কুমার সরকার, যুগ্ম- সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক তপন কুমার সরকার, সহ-সভাপতি উত্তম কুমার সাহা,সাংগঠনিক সম্পাদক অরুন কুমার পাল, অর্থ সম্পাদক রামকৃষ্ণ পাল, শ্মসান কমিটির সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত কুমার প্রামানিক, শ্মসানের সাধু প্রমুখ উপস্থিত ছিল।

নওগাঁর আত্রাইয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে পুকুর মালিকের মৃত্যু

নওগাঁর আত্রাইয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে পুকুর মালিকের মৃত্যু






 মোঃ ফিরোজ হোসাইন  
রাজশাহী ব্যুরো

 নওগাঁর আত্রাইয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে এক পুকুর মালিকের মৃত্যু হয়েছে। 
ঘটনাটি শুক্রবার দুপুরে উপজেলার বাহাদুরপুর(মাঝগ্রাম) এ ঘটেছে। 

এতে ঐ গ্রামের বাদেশ প্রাং এর ছেলে মো. বাচ্চু-৩৫ মারা যায় এবং আতিলাল এর ছেলে আহাদ-৬৫ আহত হয়।

জানা যায়, চোরের হাত হতে মাছধরা ঠেকাতে বিদ্যুতের লাইনের তার গোপনে পুকুরের মধ্যে  দিয়ে রাখে মালিক মৃত বাচ্চু। ঐ তারের সুইচ বন্ধ না করে মনের ভুলে পুকুরে মাছের খাদ্য দেওয়ার সময় বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে ডাকাডাকি করলে আহাদ সুইচ বন্ধ করে মৃত বাচ্চুকে বাঁচাতে গেলে সেও আহত হয়। খবরবপেয়ে প্রতিবেশিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক  বাচ্চুকে মৃত ঘোষনা করেন।

আত্রাই থানা ওসি মো. মোসলেম উদ্দিন বলেন, বিষয়টি অবগত হয়েছি।প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷

আত্রাইয়ে ইসরাফিল আলম এমপির সুস্থতা কামনা করে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

আত্রাইয়ে ইসরাফিল আলম এমপির সুস্থতা কামনা করে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত






মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর আত্রাই ও রানীনগরের স্বপ্ন স্রষ্ঠা জনাব
ইসরাফিল আলম এমপি মহোদয়ের সুস্থতা কামনা করে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
শুক্রবার জুম্মার  নামাজ শেষে  সাবঃরেজিষ্ট্রি অফিস জামে মসজিদ,আহসানগঞ্জ হাট জামে মসজিদ ও ঘোষপাড়া জামে মসজিদে জাতীয় শ্রমিক লীগ আত্রাই উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সরদার শোয়েব ও আত্রাই দলিল লেখক কেন্দ্রীয় দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি আবুহেনা মোস্তফা কামাল  এর যৌথ উদ্যগে  এই  রোগ মুক্তি কামনা দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। 
 আত্রাই সাবঃরেজিস্ট্রি অফিস জামে মসজিদে মোঃ ইসরাফিল আলম এমপির সুস্থতা কামনায় অনুষ্ঠিত এই দোয়া ও মিলাদ মাহফিল পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা মোঃ আব্দুল আলিম পেশ ইমাম আত্রাই সাবঃরেজিস্ট্রি অফিস জামে মসজিদ ।  এমপি মহোদয়ের রোগ মুক্তি কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
উক্ত দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, আত্রাই 
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ এবাদুর রহমান,আত্রাই দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ কায়েম উদ্দিন সরদার,উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ সাজেদুর রহমান দুদু শাহ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ হাফিজুল ইসলাম, আত্রাই দলিল লেখক কেন্দ্রীয় দাখিল মাদ্রাসার সুপার মোঃ আলাউদ্দিন সিরাজী,
উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবু উজ্জল,উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহাদী মাসনদ,উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর সোহাগ,  সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আরিফ,সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান সোবহান রাসেল,
আত্রাই মোল্লা আজাদ সরকারি কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ রাকিব হোসেন, সাধারণ সম্পাদক, মোঃ রাকিবুল ইসলাম রাব্বি,
উপজেলা শ্রমিক লীগের সহ-প্রচার সম্পাদক মোঃআফতাব উদ্দিন,
 আহসানগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্র লীগের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক, পাঁচুপুর ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক, সুরুজ প্রামাণিক, আত্রাই প্রেসক্লাবের সভাপতি রুহুল আমীন সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন সেন্টু,
সহসভাপতি মোঃ ছাবেদ আলী,
সাংবাদিক আল আমিন মিলন,সাংবাদিক ফিরোজ হোসাইন 
সাংবাদিক মোঃআল হেলাল, সাংবাদিক ও সম্পাদক এমরান মাহমুদ প্রত্যয়, সহ সকল আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।
দোয়া শেষে,আত্রাই দলিল লেখক কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ,আহসানগঞ্জ হাট জামে মসজিদ ঘোষপাড়া জামে মসজিদ। গত ০৫-০৭-২০২০ তারিখে আত্রাই - রানীনগরের মাননীয় সাংসদ সদস্য জননেতা জনাব ইসরাফিল আলম এমপি ঢাকায়  স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।বর্তমানে তিনি কেবিনে চিকিৎসা নিচ্ছেন তার শারীরিক অবস্থা উন্নতি হচ্ছে সকলের নিকট দোয়া প্রার্থনা করেছেন।

মাধবপুরে বোনা আমনের আশায় বুক বেধেছেন কৃষক

মাধবপুরে বোনা আমনের আশায় বুক বেধেছেন কৃষক




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি 

প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে ফসল ঘরে তোলা কৃষকদের কাছে নতুন কোনও ঘটনা নয়। তবে গেল বোরো মৌসুমে শিলাবৃষ্টি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের ভয়াবহতা এতটা বেশি ছিল- চোখের সামনে পাকা ধান নষ্ট হয়ে যেতে দেখা ছাড়া করার কিছুই ছিল না তাদের এ ক্ষতি পুষিয়ে নিতে। হবিগঞ্জের মাধবপুরের কৃষকরা সমস্ত জমিতে ব্যাপক রোপা ও বোনা আমনের চাষাবাদ করেছে। উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের কৃষকরা। সবক’টি ইউনিয়নেই বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে সবুজের সমারোহ দৃশ্যমান। কৃষক ওয়াহাব মিয়া জানান, আমনের এ মৌসুমে অনেকটাই দুশ্চিন্তামুক্ত থাকেন তারা। কারণ এ সময় নেই শিলাবৃষ্টি, কালবৈশাখীর অথবা আগাম বন্যার ভয়। এ বছর আমন চাষাবাদের জন্য প্রকৃতি অনুকুলে রয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে এবার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান কৃষকরা।

উপজেলার পূর্ব মাধবপুর এলাকার মোহন মিয়া বলেন, এবার তিনি অন্য বছরের তুলনায় দ্বিগুন জমি চাষ করেছেন। এ পর্যন্ত আশানুরূপ ফলন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মুরাদপুর গ্রামের কৃষক এরশাদ আলী জানান, সঠিক সময়ে মাঠ থেকে পানি নেমে যাওয়ায় এ বছর বেশি জমি রোপন করা সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও নিয়মিত কয়েকবার বৃষ্টি হওয়ার কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় অন্তত দেড়গুণ ফলনের আশা করছেন তিনি। মাধবপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, গত বছর উপজেলার রোপা আমনের লক্ষ্যমাত্রা ৬ হাজার হেক্টর ধরা হলেও এর চেয়ে অনেক কম জমি রোপন করা হয়েছিল। তবে এবার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮ হাজার ৫৫০ হেক্টর। কিন্তু চাষ হয়েছে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ৯ হাজার হেক্টর।

বোনা আমন চাষাবাদ হয়েছে সাড়ে ৪ হাজার হেক্টর। তিনি আরো জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার পরিবেশের ছিল অনূকুল অবস্থান। তাই কৃষকরা আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে বেশি জমি চাষ করেছেন। তাছাড়া সঠিক সময়ে জমিতে সার এবং কীটনাশক প্রয়োগ করায় আক্রমন করতে পারেনি পোকা। এছাড়াও সরকারি প্রশিক্ষণ মতে কৃষকরা জমিতে সুষম সারের সঠিক প্রয়োগ করেছেন। সবকিছু মিলিয়ে এবার বাম্পার ফলনের আশা করা যায়।

ঝিনাইদহে করোনা মহামারি এখন ডোন্ট কেয়ার, ডাঃ হাসানুজ্জামান সহ ১২ জন আক্রান্ত

ঝিনাইদহে করোনা মহামারি এখন ডোন্ট কেয়ার, ডাঃ হাসানুজ্জামান সহ ১২ জন আক্রান্ত





খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার। 
( ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি) 



রাস্তাঘাটে গমগম করছে মানুষ। যানবাহনও ফাঁকা নেই। ইজিবাইক, ভটভটি ও নছিমন করিমনে ঠাসাঠাসি মানুষ। হাট-বাজারও ফিরেছে সেই পুরনো চেহারায়। গ্রামগঞ্জের বাজারঘাটে চায়ের দোকানে জটলা। শহরের অলিগলিতে রাতের পর উদ্দেশ্যহীন যুবকদের ঘোরাঘুরি। সবকিছু দেখে মনে হচ্ছে ঝিনাইদহবাসির কাছে করোনাভাইরাস এখন ডেম কেয়ার। তাই চলাফেরায়ও ডোন্ট কেয়ার ভাব। করোনা আতংক ও সরকারী কোন বিধি নিষেধ মানুষের মনে দাগ কাটছে না। ফলে জেলায় থাবা বিস্তার করে চলেছে করোনা ভাইরাস। এদিকে ঝিনাইদহের বিশিষ্ট গাইনি চিকিৎসক ও যশোর আদ্বদীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যাপক ডাঃ হাসানুজ্জামানসহ ঝিনাইদহে নতুন করে আরও ১২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ৩৭৮ জন। সিভিল সার্জন ডাঃ সেলিনা বেগম জানান, শুক্রবার সকালে কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে ঝিনাইদহে ৪৯ টি রিপোর্ট এসেছে। এর মধ্যে ১২ টি পজেটিভ। এলাকাভিত্তিক আক্রান্তদের মধ্যে শহরের নেভি অফিস, দুঃখি মাহমুদ সড়ক, র‌্যাব অফিস, আদর্শপাড়া ও পাগলাকানাই। কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার, চাপরাইল, বলিদাপাড়া ও নিয়ামতপুর। শৈলকুপা উপজেলার দুধসর, গোসাইডাঙ্গা ও কাতলাগাড়ি। মহেশপুরের পুরন্দরপুর ও ফতেপুর এলাকায় আক্রান্ত হয়েছে।এ পর্যন্ত আক্রান্ত ৩৭৮ জনের মধ্যে সুস্থ্য হয়েছেন ১২৮ জন। হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২০ জন। জেলায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৭ জন।

সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে রেজাউল করিম চৌধুরী শোক

সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে রেজাউল করিম চৌধুরী শোক




রিয়াজুল করিম রিজভী প্রতিনিধি চট্টগ্রামঃ-

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন এমপির মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম. রেজাউল করিম চৌধুরী।

এক শোক বার্তায় তিনি বলেন,  সাহারা খাতুন ছিলেন একজন নিবেদিতপ্রাণ রাজনীতিবিদ। সবসময় নেতাকর্মীদের পাশে থেকেছেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে তিনি আজীবন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার পক্ষে লড়াই করে গেছেন।তিনি ছিলেন দলের পরীক্ষিত ও ত্যাগী নেতাদের অন্যতম। তার মৃত্যু জাতীয় রাজনীতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।

আমি মরহুমার আত্মার শান্তি কামনা করছি এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।মহান সৃষ্টিকর্তা তাঁকে জান্নাতবাসী করুন।আমিন।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত নানান জটিলতায় ভুগছিলেন ৭৭ বছর বয়সী এই নারী রাজনীতিক৷ অ্যালার্জি জনিত সমস্যা নিয়ে গেলো ২ জুন রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা তাকে৷ তারপর থেকেই অবস্থার অবনতি ঘটে তার। কয়েকদফা আইসিইউ'তে চিকিৎসা দেয়ার এক পর্যায়ে গত ৬ জুলাই এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাহারা খাতুন।

গল্পের নামঃ লাভ 💖 স্টোরি

গল্পের নামঃ লাভ 💖 স্টোরি






- একটা মেয়ে তার বয়ফেন্ড নিয়ে পার্কে বসে গল্প করছিলো, এমন সময় মেয়েটি তার বয়ফ্রেন্ড কে জিজ্ঞাসা করলো আচ্ছা আমার অন্য কারো সাথে বিয়ে হয়ে গেলে তুমি কি করবে...? ছেলেটি উওর দিলো ভুলে যাব ছেলেটির কথা শুনে মেয়েটি রাগে অন্য দিকে মুখ ঘুরিয়ে রাখে ।  এবার ছেলেটি বলল তুমিও আমাকে ভুলে যাবে...? এটা সবচেয়ে বড় কথা, আমি যত দ্রুত তোমাকে ভুলে যাবো, তার চেয়ে বেশি দ্রুত তুমি আমাকে ভুলে যাবে । মেয়েটি ছেলেটি কে প্রশ্ন করলো কি রকম...? তখন ছেলেটি বলতে শুরু করলো "মনে করো বিয়ের প্রথম তিন দিন তুমি এক ধরনের ঘোরের মধ্যে থাকবে, শরীরে গয়নার ভার, মুখে মেকাপ চারিদিকে থেকে ক্যামেরার ফ্লাশ, মানুষের ভীড় তুমি চাইলেও তখন আমার কথা মনে করতে পারবেনা । "আর তখন আমি তোমার বিয়ের খবর শুনে কোন বন্ধুর সাথে উল্টা পাল্টা কিছু খেয়ে পরে থাকব, আর একটু পর পর তোমাকে হৃদয় হীনা বলে গালি দিব । আবার পরক্ষেণই  পুরাতন স্মৃতির কথা মনে করে বন্ধুকে জড়িয়ে ধরে কাঁদবো, "বিয়ের পরের দিন তোমার আরো ব্যাস্ত সময় কাটবে, স্বামীর সাথে মিষ্টির প্যাকেট হাতে নিয়ে বিভিন্ন আত্মীয় স্বজনদের বাসায় ঘুরে বেড়াবে আমার কথা তখনই তোমার হঠাৎ হঠাৎ মনে হবে,  এই যেমন স্বামীর হাত ধরার সময়, এক সাথে রিক্সায় চড়ার সময়, " আর আমি তখন ছন্নছাড়া হয়ে ঘুরে বেড়াব । আর বন্ধুদের বলবো বুঝলি দোস্ত প্রেম ভালোবাসা বলতে কিছু নাই, "পরের এক মাস তুমি হানিমুনে যাবে, শপিং করবে আরো অনেক প্লান স্বামীর সাথে হালকা মিষ্টি ঝগড়া তখন তুমি বিরাট সুখে । হঠাৎ আমার কথা মনে হলে ভাব বে আমার সাথে বিয়ে না হয়ে বোধহয় ভালোই হয়েছ আর আমি তত দিনে বাবা-মা বড় ভাইয়ের ঝাড়ি খেয়ে, বন্ধুদের শান্তনা পেয়ে মোটামুটি সোজা হয়ে গিয়েছি । ঠিক করেছি কিছু একটা করতে হবে, তোমার চেয়ে সুন্দরী একটা মেয়ে বিয়ে করে তোমাকে দেখিয়ে দিতে হবে, সবাইকে বলবো তোমাকে ভুলে গেছি । কিন্তু তখন মাঝরাতে তোমার দেওয়া এস এস এম গুলো বের করে পড়বো আর দীর্ঘশ্বাস ছাড়বো । "দুই বছর তুমি আর কোন প্রেমিকা বা বাড়ির নতুন বউ নেই, মা হয়ে গিয়েছ । পুরাতন প্রেমিকে স্মৃতি, স্বামীর আহ্লাদ এসবের চেয়ে তোমার বাচ্চার খাওয়ানো গোসল করানো এসব নিয়ে বেশি চিন্তিত থাকবে । হঠাৎ তখন আমি তোমার জীবন থেকে মোটামুটি পারমানেন্টলি ডিলিট হয়ে যাবো । এদিকে আমি একটা চাকরি পেয়েছি, বিয়ের কথা চলছে মেয়েও পছন্দ হয়েছে, আমি তখন ভীষণ ব্যাস্ত । এবার সত্যিই আমি তোমাকে ভুলে গিয়েছি । শুধু রাস্তা ঘাটে কিংবা পার্কে GF/BF এক সাথে বসে থাকতে দেখলে তোমার কথা মনে পড়বে, কিন্তু তখন আর দীর্ঘশ্বাস আসবে না ।  এতদূর পর্যন্ত বলার পর ছেলেটি দেখলো মেয়েটির ছলছল চোখ নিয়ে তাকিয়ে আছে । মুখে কোন কথা নেই ছেলেটি ও চুপচাপ, একটু পর মেয়েটি বললো তবে কি এখানেই সব শেষ...? ছেলেটি বললো না, কোন এক মন খারাপের রাতে তোমার স্বামী যখন মাঝরাতে নাক ডেকে ঘুমাবে, আমার বউ ও তখন ব্যস্ত থাকবে নিজের ঘুম রাজ্যে । শুধুমাত্র তোমার আর আমার চোখে ঘুম থাকবে না, সেদিন অতীত আমাদের দুজনেই নিঃশ্বে কাঁদাবে, সৃষ্টিকর্তা ব্যাতিত যে কান্না আর জানবে না.........

পর্ব ১


গল্প লেখকঃ আর.জে. মিজানুর রহমান ইমন, তারাকান্দা,ময়মনসিংহ  - মোবাইলঃ ০১৯১৬ ৭৩ ৬৩ ৬৮

ঝিনাইদহ আরাও ১২ জন করোনায় আক্রান্ত

ঝিনাইদহ আরাও ১২ জন করোনায় আক্রান্ত




সম্রাট হোসেন,শৈলকুপা (ঝিনাইদহ )সংবাদদাতাঃ
 
কোভিড-১৯ এর আপডেট তথ্য :
অফিসিয়াল ভাবে আমাদের কাছে কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে আরো ৪৯টিনমুনার ফলাফল এসেছে। যার ৩৭জন_নেগেটিভ এবং ১২জন_নতুন_আক্রান্ত। 
সুতরাং মোট প্রাপ্ত ফলাফলের সংখ্যা২৪৭২+৪৯=২৫২১
নেগেটিভ_২১৪৩
আক্রান্ত_৩৬৬+১২=৩৭৮

মোট_সংগৃহীত_নমুনার_সংখ্যা_২৭৮১

উপজেলা_ভিত্তিক_আক্রান্তের_মোট_সংখ্যা 
সদর_১৩১+৫=১৩৬
শৈলকূপা_৫৪+২=৫৬
হরিনাকুন্ডু_১৬
কালীগন্জ_১২০+৪=১২৪
কোটচাদপুর_২৫
মহেশপুর_২০+১=২১

আক্রান্তদের_এলাকা_সমুহ_

সদর_(৫)-
১. নেভী অফিস
২. দুঃখী মাহমুদ সড়ক
৩. আদর্শপাড়া
৪. পাগলাকানাই
৫. RAB ক্যাম্প

শৈলকূপা_(২)-
১. ত্রিপুরা, দুধসর ২.গোসাইডাঙা, কাতলা গাড়ি 

কালীগঞ্জ_(৪)-
১. বাজারপাড়া (নলডাঙ্গা)
২. চাপরাইল (নলডাঙ্গা)
৩. চাপরাইল (নিয়ামতপুর)
৪. বলিদাপাড়া  (নলডাঙ্গা)

মহেশপুর_(১)-
১.পুন্দরপুর,ফতেহপুর

​মোট_সুস্থতার_সংখ্যা_১২১+৭=১২৮

উপজেলা_ভিত্তিক_সুস্থতার_সংখ্যা

সদর_৩৩+৭=৪০
শৈলকূপা_১৬
হরিনাকুন্ডু_৬
কোটচাঁদপুর_১৮
কালীগন্জ_৩৮
মহেশপুর_৫+৫=১০

কোভিড_১৯_হাসপাতালে_ভর্তি_রোগীর_সংখ্যা_২০

মোট_মৃত্যুর_সংখ্যা ৯

শৈলকূপা_৪
কালিগন্জ_৩
সদর-২

অবুঝ ভালোবাসা

অবুঝ ভালোবাসা
 



লেখক : আর.জে মিজানুর রহমান ইমন

একটি ছেলে একটি মেয়েকে ভালবাসতো ছেলেটির নাম ছিলো ইমন আর মেয়েটির নাম ছিলো সাথী, হঠাৎ করে সাথীর বিয়ে ঠিক হয়ে গেল । তখন বিয়ের আগের দিন রাত ১১:টা বাজে ইমন সাথী কে ফোন দেয়, তুমি আমার সাথে একটু দেখা করতে পারবে...? সাথী: কালকে আমার বিয়ে আর আজ তুমি ডাকছো বাড়ির লোকজন জানতে পারলে খারাপ মনে করবে । ইমন: না মানে জীবনের শেষ বারের মতো তোমাকে দেখতে চাই । আর তো তোমাকে দেখতে পাবো না তাই, সাথী: আচ্ছা আসবো, ইমন: আমাদের সেই পুরোনো দেখা করার জায়গাটিতে । সাথী: ঠিক আছে; সাথী তখন ঠিক ঐ সময়ে পৌঁছে গেল । গিয়ে দেখল ইমন একটা কেক মোমবাতি জ্বালিয়ে চাঁদের আলোয় বসে আছে । সাথী এসে ইমনের পাশে বসলো, তুমি এখনো আমার জন্মদিন মনে রেখেছো...? ইমন বলছে মরার আগ পর্যন্ত তোমাকে ভালোবেসে যাব । কথাটা শোনার পর সাথী হাউমাউ করে কেঁদে উঠলো আর ইমনের হাত ধরলো, ইমন: এই নাও কেক টা কাটো, সাথী ছুরিটা তুলে কেক টা কাটলো, এক টুকরো কেক ইমন কে খাইয়ে দিলো, আর টুকরো ইমন সাথী কে খাইয়ে দিলো । ইমন চোখে অশ্রু আর কান্না কান্না কন্ঠে বললো দেখো তুমি জীবনে অনেক সুখি হবে, তোমার বর তোমাকে অনেক সুখে রাখবে । সাথী: তোমাকে ছাড়া কি করে সম্ভব....!! কিছুক্ষণ চুপ থাকার পরে ইমন বলছে আমাকে ভুলে যেও প্লীজ, সাথী: আমরা কি এখন পালিয়ে বিয়ে করতে পারিনা...? ইমন: না তাতে শুধু আমরা সুখে থাকবো, কিন্তু তোমার আমার বাবা মা খুব কষ্ট পাবে । কারণ, তোমার বাবা তোমার উপরে অনেক ভরসা করে বলছে পাত্র পক্ষ কে যে তার মেয়ে তার কথার উপরে কোন কথা বলবে না । আর সে বিশ্বাস তুমি কেন ভাঙ্গবে....?  সাথী: কেঁদে কেঁদে বললো কেন যে বাবা মা গুলো এমন হয়...? তাদের কি একটি বার মনে হয়না, যে তার মেয়ের একটি স্বাধীনতা আছে...? ইমন: বাবা মা আমাদের জন্য দিয়েছেন লালন পালন করে আজ অনেক বড় করেছে, তাই তাদের ভরসাটা আমাদের উপরে একটু বেশিই । সাথী: আই লাভ ইউ, ইমন: লাভ ইউ টু । সেই সময় সাথী ইমনের কপালে একটা চুমু দিয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি চলে গেল, ইমন এখানেই বসে রইলো । পরের দিন সকালে দেখা গেলো সাথী তার ঘরে বিষ পান করে আত্মহত্যা করেছে, আর ইমন ওখানেই বসে ছুরি দিয়ে হাতের শিড়া কেটে আত্মহত্যা করেছে । ভালোবাসা সত্যিই অবুঝ.....💖 আর সেই অবুঝ ভালোবাসা সত্যিই একদিন প্রকাশ পায় । সন্তান কে নিয়ে গর্ব করার কিছুই থাকে না, প্রিয় বাবা মা তোমাদের উপরে কোন রাগ নয়, নয় কোন অভিযোগ বরং তোমাদের উপরে রইলো অনেক অনেক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা......

গল্প: অবশেষে ভালোবাসা লেখক : বকুল হাসান

গল্প: অবশেষে ভালোবাসা  লেখক : বকুল হাসান




আমি  :তর একটা পিক দে তো দুস্ত।
তামান্না:আচ্ছা দিচ্ছি দেখ।
আমি :হুম পেয়েছি পিক। 
তামান্না :ওহ আচ্ছা. 
আমি :মেয়েটা কে ?
তামান্না:কোন মেয়েটা? 
আমি :আরে পিকে যে তর সাথে ওই মেয়েটা। কে এই মেয়ে? 
তামান্না:আরে ও তো আমার ফ্রেন্ড ।
আমি :ওহ আচ্ছা। তাহলে তো ভালোই হলো .
তামান্না: তাহলে ভালো হলো মানে ?কি বুঝতাছে চাচ্ছিস তুই?
আমি : আরে কিছুনা বাদ দে তো। ওই আরেকটা কথা বলতো. ?
তামান্না:কি কথা বল 
আমি:ওই মেয়ের নাম কি রে? আর ওই মেয়ে কি ফেসবুক চালাই?ওর কি ফেইসবুক আইডি আছে?
তামান্না:তুই এসব জানতে চাচ্ছিস কেনো?
আমি:আরে বল না দুস্ত প্লিজ। 
তামান্না:আচ্ছা ঠিক আছে ।
নাম হলো সাইমা। আর সে ফেসবুক চালাই ,এবং আইডি ও আছে।

আমি:দুস্ত ওর আইডির লিংকটা দে না পিল্জ.
তামান্না:আমি বুঝতেছি না তুই এসব দিয়ে কি করবি?
আমি:আরে তুই দে ধরকার আছে।
তামান্না!ওকে নে,এইযে লিংক ........
আমি:ধন্যাবাদ বন্ধু। এখন বাই। পরে কথা হবে।
তামান্না!ওকে বাই। আল্লাহ হাফেজ।
.
.
.
তারপর আমি তামান্নার দেওয়া আইডির লিংকে ডুকে তার আইডি তে গিয়ে সাইমা কে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট দিলাম। ফেন্ড রিকুয়েস্ট দেওয়ার সাথে সাথেই রিকুয়েস্ট একসেপ্ট করে ফেললো সাইমা । রিকুয়েস্ট একসেপ্ট করার নোটিফিকেশন পেয়ে আমি খুশি তে একটা লুঙি ডান্স দিলাম. !ও আপনাদের তো বলায় হয়নি ,ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট একসেপ্ট করার জন্য কেনো খুশি হলাম। আর এতক্ষন কেনই বা তামান্নার কাছ থেকে সাইমার সম্পর্কে এত কিছু জানলাম। এতকিছু জানার পরিচয় আর আইডি চাওয়ার কারন হলো, আমি তামান্নার সাথে সাইমার পিক দেখেই প্রেমে পড়ে গিয়েছিলাম। যাকে বলে প্রথম দেখাতেই প্রেমে পড়ে যাওয়া। আহ কি সুন্দর মায়াবী চোখ, প্রেমে পরার জন্য এই মায়াবী দুটো চোখ ই যথেষ্ট।
আচ্ছা যাই হোক, তারপর,। আমি সাইমাকে একটা মেসেজ দিলাম। মেসেজ টা হলো, আমি কি আপনার সাথে পরিচিত হতে পারি?
মেসেজ টা দেওয়ার সাথে সাথেই মেসেজটা সিন করে রিপলে দিলো সাইমা।
 হুম অবশ্যাই, পরিচিত হওয়া যাবে  ।
তারপর আমি আবার মেসেজ দিলাম। আপনার নাম কি ?নাম তো আমি জানিই তবু প্রশ্ন করলাম তাকে।বাসা কোথায়? কোন ক্লাসে পড়ে? একসাথে এতগুলো প্রশ্ন করেই ফেললাম মেসেজে। তারপর সাইমা মেসেজ এর রিপলে দিলে, আমি সাইমা আমিন। বাসা :ময়মনসিংহ। আর আমি এবার নবম শ্রেনীতে পড়ি। এবং আমায় আবার উল্টো প্রশ্ন ছুড়ে দিলো, আপনার নাম কি? বাসা কোথায়?আর কোন ক্লাসে পড়েন? ।

তারপর আমি  ,সাইমার মেসেজের রিপলে দিলাম।  আমি মো:বকুল হাসান। বাসা:ফুলপুর। আর এবার এসএসসি পরিক্ষায় দিয়ে পাশ করেছি, কলেজে ভর্তি হবার অপেক্ষায় রয়েছি।
অতপর,সাইমা মেসেজ দিলো ওহ আচ্ছা গুড।
আমি আবার তারপর সাইমাকে মেসেজ দিয়ে বললাম, আপনার নামটা কিন্তু অনেক সুন্দর।
সে রিপলে দিলো, ওহ ধন্যাবাদ।
তারপর আমি তাকে মেসেজ দিলাম আচ্ছা এখন এখন বাই ,পরে কথা হবে।
সে মেসেজ দিলো, ওকে ঠিক আছে। টাটা বাই বাই ভালো থাকবেন।
অতপর আমি আর মেসেজ টা সিন না করে ডাটা টা অফ করে রেখে দিয়ে, বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে চলে গেলাম। আড্ডা দেওয়া শেষ করে, বাসায় এসে ফ্রেস হয়ে নাস্তা করে ,বিছানায় গা এলিয়ে দিয়ে ডাটা টা চালু করলাম। ডাটা টা চালু করে মেসেন্জারে ঢুকতেই প্রথম মেসেজ টা দেখে আমি অভাগ হয়ে গেলাম। কারণ :মেসেজ টা দিয়েছে সাইমা। আর মেসেজ টা হলো, এইযে মিস্টার বকুল সাহেব। কি করেন?
আমি রিপলে দিলাম,তেমন কিছু করি না ভাবতেছি একজন কে নিয়ে। আপনি করেন ?
সাইমা রিপলে দিলো, শুয়ে আছি। আর কাকে নিয়ে ভাবতেছেন তা কি জানা যাবে?

আমি :হুম সময় হলে জানতে পারবেন।বাসার সবাই কেমন আছে?
সাইমা:ওহ আচ্ছা। আলহামদুলিল্লাহ ভালোই আছে। আপনার?
আমি:হুম আলহামদুলিল্লাহ।
সাইমা :গুড
আমি :একটা প্রশ্ন করতে পারি আপনাকে?
সাইমা:হুম করেন।
আমি:আপনার কোনো বয়ফ্রেন্ডকে আছে???
সাইমা :না আমার কোনো বয়ফ্রেন্ডকে নেই।
আমি:আচ্ছা আমরা কি আপনি থেকে তুমি হতে পারি না??
সাইমা :হুম অবশ্যাই।
    ****    **
আর এভাবেই প্রতিদিন কথা বলতে বলতে আমাদের একটা ভালো বন্ধুত্বের সম্পর্ক হয়ে গেলো।আর নাম্বার ও আদান প্রধান করা হয়েছে, এবং পিক ও আদান প্রধান করা হয়েছে।  প্রতিদিন ই তার সাথে কথা হতো ।আমি তাকে খুব কেয়ার করতাম। সেও আমার সবসময় খোজখবর রাখতো, ।
.
.

কিন্তু, হঠাত একদিন তাকে একটা মেসেজ দেই ,আর সে  সেই মেসেজ টা দেখে অভাগ হয়ে গেছিলো। মেসেজ ছিল, আমি কি তোমার জীবনসঙ্গী হতে পারি?আমি কি তোমাকে নিয়ে পরন্ত সন্ধ্যায় সূর্য অস্ত যাওয়া দেখার সঙ্গী হতে পারি?
সাইমা মেসেজ টা সিন করে রেখে দিয়েছে ,রিপলে দিচ্ছে না।কয়েক মিনিট হয়ে গেছে তবু রিপলে দিচ্ছে না আর এই দিকে, আমার ভিতরটা ছটফট করতেছে, কেমন জানি অস্বস্তি লাগতেছে,।অস্বস্তির মাঝেও আরো একটা মেসেজ দিলাম ,মেসেজ টা হলো, কি হলো রিপলে দিচ্ছো না কেনো?
এই মেসেজ টা দেওয়ার পর সিন করলো তবে এখনো রিপলে দিচ্ছে না, প্রায় মিনিট খানেক পর টুং করে একটা মেসেজ আসলো, মেসেজা টার  শব্দটা পাওয়ার সাথে সাথে বুকটা আমার ধরপরিয়ে উঠলো, মেসেজ টা পড়ে আমি অবাক হয়ে গেছি, মেসেজ টা হলো ....,,

হুম বকুল আমি তোমার জীবনসঙ্গিনী হতে রাজি। আমি তোমার স্বপ্নের রানী হতে পারি রাজি। আমি তোমার সন্ধ্য বেলার সূর্য দেখার সাথী হতে রাজি।ভালোবাসি তোমাকে। বড্ড ভালোবাসি।

আমি মেসেজের রিপলে টা দেখে কতটা খুশি হয়ে ছিলাম তা আপনাদের বুঝাতে পারবো না। তারপর আমি ও মেসেজটার রিপলে দিলাম, ভালোবাসি খুব বেশি  ভালোবাসি তোমাকে!
অতপর→ আমাদের ভালোবাসা শুরু হয়ে গেলো। আমরা দুইজন এক হয়ে গেলাম !

বিশেষ দ্রষ্টব্য :নতুন লিখতে শুরু করেছি, তাই স্বাভাবিক ভুল হতেই পারে।এবং গল্পটা কিন্তু অর্ধেক সত্যি কাহিনি আর অর্ধেকটা বানোয়াট।  আশা করি আপনারা ভুল গুলো ধরিয়ে দিবেন। আর গঠনমূলক মন্তব্য করবেন!

যশোর পুলিশ লাইন থেকে ৫ পুলিশের মোবাইল ও টাকা চুরি, চোর আটক।

যশোর পুলিশ লাইন থেকে ৫ পুলিশের মোবাইল ও টাকা চুরি, চোর আটক।




সুমন হোসেন, যশোর প্রতিনিধি। 
এবার খোদ যশোর পুলিশ লাইন্স ব্যারাক থেকে গভীর রাতে পাঁচ পুলিশ কনস্টেবলের প্রায় পৌনে ২লাখ টাকা মূল্যের ৫টি মোবাইল ও নগদ ১০ হাজার টাকা চোর চক্রের দুই সক্রিয় সদস্যকে এক বছর পাঁচ মাস পর গ্রেফতার করেছে। এরা হচ্ছে, নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার খড়মপুরি গ্রামের আব্দুল মতিন প্রামানিকের ছেলে বিপ্লব প্রামানিক ও একই উপজেলার কাটা পুকুরিয়া গ্রামের মৃত ভরত চন্দ্র দাসের ছেলে শ্রী পলাশ দাস। এ সময় তাদের সহযোগী একই উপজেলার খামারোপাড়া গ্রামের আব্দুস সামাদ মাষ্টারের ছেলে আমিনুল ইসলাম, একই উপজেলার হাতিপাড়া গ্রামের বর্তমানে মা টেলিকম সিংড়া মাদ্রাসা মোড়ের আতাউর রহমানের ছেলে তানভির মাহমুদ আপেলসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫জ কে গ্রেফতার করতে পারেনি। গ্রেফতারকৃতরা আন্তজেলা মোবাইল চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করে। মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলার কুশা ইছাপুর গ্রামের বর্তমানে যশোর পুলিশ লাইন যশোরের শরীফুল ইসলামের ছেলে কনস্টেবল নং ১৯২১ মুসফিকুর রহমান বুধবার দিবাগত গভীর রাতে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, গত বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারী রাত দেড়টায় পুলিশ লাইন নতুন বিল্ডিং ২য় তলা ভবনের ২০৩ নং রুমে সেসহ অন্যান্য পুলিশ কনস্টেবল শুয়ে পড়ে। ভোর ৫ টা ২০ মিনিটে ঘুম থেকে উঠে দেখেন তার বালিশের পাশে রাখে অপ্পো কোম্পানীর ২৯ হাজার ৯৯০ টাকা মূল্যের মোবাইল নাই। ব্যারাকে অবস্থানরত অন্যান্যদের ডাকলে তারা সকলে ঘুম উঠে। ব্যারাকে থাকা ইমরান হোসেনের ব্যবহৃত স্যামস্যাং কোম্পানীর গ্যালাক্সি ৫৬ হাজার ৯৯০ টাকা মূল্যের ও নগদ ১০ হাজার টাকা, আকাশের স্যামস্যাং কোম্পানীর গ্যালাক্সি ২৮,৯৯০ টাকা মূল্যের মোবাইল,মনজুর হাসানের অপ্পো কোম্পানীর ২৩,৯৯০ টাকা মূল্যের ও পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল এর সিম্ফনী কোম্পানীর ১৫ হাজার ৯৯০ টাকা মূল্যের মোবাইল ফোন নাই। এ বিষয় পুলিশ কনস্টেবল ইমরান হোসেন ১৪ ফেব্রুয়ারী কোতয়ালি মডেল থানায় একটি সাধারণ ডাইরীভূক্ত করেন। সাধারণ ডাইরী নং ৭৪৫ তারিখঃ ১৪/০২/২০১৯ ইং। উক্ত ডিডিই তদন্ত করেন কোতয়ালি মডেল থানার এএসআই আলতাফ হোসেন। তদন্তকালে আলতাফ হোসেন তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে জানতে পারেন চুরি যাওয়া মোবাইল গুলি নাটোর জেলার সিংড়া থানা এলাকায় ব্যবহৃত হচ্ছে। উক্ত তথ্যর ভিত্তিতে বুধবার ৮ জুলাই কোতয়ালি মডেল থানা থেকে চৌকশ একটি দল নাটোর জেলার সিংড়া থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রথমে বিপ্লব প্রামানিককে পরে তার কথা মতো শ্রী পলাশকে গ্রেফতার করে। তারা গ্রেফতার হওয়ার পর উভয় উভয়কে মোবাইল চোর চক্রের সদস্য দাবি করেছেন। বৃহস্পতিবার ৯ জুলাই গ্রেফতারকৃত দু’জনকে আদালতে সোপর্দ করে।

ঝিনাইদহে এক দিনে চারজন করোনা আক্রান্ত মৃতের লাশ দাফন করলো ইসলামিক ফাউন্ডেশন

ঝিনাইদহে এক দিনে চারজন করোনা আক্রান্ত মৃতের লাশ দাফন করলো ইসলামিক ফাউন্ডেশন





খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি। 



ঝিনাইদহে চারজন করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির লাশ দাফন করেছে ঝিনাইদহ ইসলামী ফাউন্ডেশনের লাশ দাফনকারী কমিটি। ইসলামী ফাউন্ডেশনের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান উপ-পরিচালক আব্দুল হামিদ খান। 

তিনি বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন বৃহস্পতিবার সকালে শৈলকুপার বড়বাড়ি গ্রামে আব্দুর রাকিবের স্ত্রী বিলকিস রাকিব নামে একজনকে দাফন করা হয়। তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় জাপান ইষ্ট ওয়েস্ট হাসপাতাল শ্বাস কষ্ট করোনায় উপসর্গ নিয়ে ইন্তিকাল করেন। ঢাকার যাত্রাবাড়িতে তিনি বসবাস করতেন। 

ঝিনাইদহ শহরের টিএন্ডটি পাড়ার বাসিন্দা মো: তাজুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার সকালে ইসলামী ফাউন্ডেশনের লাশ দাফনকারী কমিটি দাফন করেন। ঝিনাইদহ শহরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জাহিদ হোসেনের স্ত্রী শিরীন সুলতানাকে জানাযা শেষে ঝিনাইদহ পৌর গোরস্থানে দাফন করে ইসলামী ফাউন্ডেশনের লাশ দাফনকারী কমিটি। 

তিনি বৃহস্পতিবার ভোরে করোনা আক্রান্ত হয়ে সি এম এইচ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। এদিকে শহরের আদর্শপাড়ার নওশের আলীর ছেলে মো: এ কে এম মামুন করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করলে বৃহস্পতিবার বিকালে ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় গোরস্থানে দাফন করে ইসলামী ফাউন্ডেশনের লাশ দাফনকারী কমিটি। 

উল্লেখ্য এই নিয়ে ঝিনাইদহ জেলায় করোনায় আক্রান্ত ও করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃতবরণ কারী ২১ জনকে দাফন করেছে ঝিনাইদহ ইসলামী ফাউন্ডেশন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর প্রেসিডিয়াম সদস্য এ্যাডঃ সাহারা খাতুন আর নেই।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর প্রেসিডিয়াম সদস্য এ্যাডঃ সাহারা খাতুন আর নেই।




নিজস্ব সংবাদদাতাঃ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আর আমাদের মাঝে নেই। ব্যাংককে বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে বাংলাদেশ সময় ১১টা ২৬ মিনিট এ  চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন।

সাহারা খাতুন কিডনি ও শ্বাসতন্ত্রের জটিলতায় ভুগছিলেন। গত সোমবার এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে তাঁকে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

ব্যাংককে সাহারা খাতুনের সঙ্গে তাঁর সহকারী মো. আনিস রয়েছেন,তিনি ফোন করে সাহারা খাতুনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন।

সাহারা খাতুন ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এরপর তিনি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন। তিনি ঢাকা-১৮ সংসদীয় আসনে পরপর তিনবার নির্বাচিত হন।