পটিয়া মানবতা ক্লাবের ধুমপান বিরোধী সভা ৩১ ডিসেম্বর

পটিয়া মানবতা ক্লাবের ধুমপান বিরোধী সভা ৩১ ডিসেম্বর



সেলিম চৌধুরী স্টাফ রিপোর্টারঃ- প্রতি বছরের ন্যায় আগামী ৩১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সন্ধায় পটিয়া মানবতার ক্লাবের উদ্যাগে পটিয়া প্রধান ডাকঘর এলাকায় ধুমপান বিরোধী আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠান সফল করার আহবান জানিয়েছেন পটিয়া মানবতা ক্লাবের প্রতিষ্টাতা সভাপতি সাবেক ছাএনেতা মোঃ ইদ্রিস পানু।

গঙ্গানন্দপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আগামীকাল ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প

গঙ্গানন্দপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আগামীকাল ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প

নিউজ ডেস্ক: আগামীকাল ২৪ শে ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার গঙ্গানন্দপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণে ফ্রি ডেন্টাল কাপ অনুষ্ঠিত হবে ।এই উপলক্ষে যেসকল ব্যক্তি দাঁতে রোগে ভুগছেন তাদেরকে যথাসময়ে আসার জন্য বিশেষভাবে বলা হলো।

সার্বিক সহযোগিতায়:  মুশফিকুর রহিম জিম
যোগাযোগ : 01623 87 86 87

সাতদিন বাদেই অনলাইনে বই উৎসবের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

সাতদিন বাদেই অনলাইনে বই উৎসবের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ফাইল ফটো

ডেস্ক রিপোর্ট: সাতদিন বাদেই অনলাইনে বই উৎসবের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অথচ প্রাথমিকের বই এসেছে ৬৮ দশমিক ৮১ শতাংশ। আর মাধ্যমিকের বই  প্রাপ্তির হার ৪৩ শতাংশ। জেলা শিক্ষা অফিস কর্তৃপক্ষ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। দাখিলে বই প্রাপ্তির হার মাত্র ২০ শতাংশ।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানিয়েছে, জেলার আট উপজেলায় বইয়ের চাহিদা ১৪ লাখ ১২ হাজার ৭৩৩ পিস। এসেছে ৯ হাজার ৭২ হাজার ২০৩ পিস প্রাপ্তির হার ৬৮ দশমিক ৮১ শতাংশ। এরমধ্যে কেশবপুর, চৌগাছা, ঝিকরগাছা ও শার্শা  উপজেলায় শতভাগ বই পৌঁছে গেছে। বাঘারপড়ায় ৯৭ হাজার ৮০ পিস বইয়ের মধ্যে পৌঁছেছে ৬৬ হাজার ৪৩৫ পিস বই। অভয়নগরে ১লাখ ১২ হাজার ৫পিস বইয়ের মধ্যে পৌঁছেছে ৭৪ হাজার ৯৬২ পিস বই। মণিরামপুরে ২ লাখ ৪ হাজার ১২৬ পিস বইয়ের মধ্যে পৌঁছেছে ৮০ হাজার ৪৫৪ পিস বই। সদর উপজেলায় ৩ লাখ ৯৯০ হাজার ২৪০ পিস বইয়ের মধ্যে পৌঁছেছে ১ লাখ ৫০ হাজার ৭০ পিস। সদর, অভয়নগর, বাঘারপাড়া ও মণিরামপুর উপজেলায় দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম শ্রেণির বই পৌঁছাইনি। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শেখ অহিদুল আলম জানান এ মাসের মধ্যে সব বই পৌঁছে যাবে। যথা সময়ে শিক্ষার্থীদের কাছে বই পৌঁছে দেয়া হবে।

এদিকে মাধ্যমিক ২৭ লাখ ৭৫ হাজার ১৪৬ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে ১১ লাখ ৯২ হাজার ৯৬৮ পিস বই। প্রাপ্তির হার ৪৩ শতাংশ। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৮ লাখ ৪৭ হাজার ৫৬৯ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে  ৩ লাখ ৭১ হাজার ১৬৮ পিস বই। প্রাপ্তির হার ৪৪ শতাংশ। শার্শায় ৩ লাখ ৪৮ হাজার পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে  ১ লাখ ৫৯ হাজার পিস বই। মণিরামপুরে ৪ লাখ ১হাজার ৮৫৮ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে  ১ লাখ ৮৬ হাজার ৭৭৯ পিস বই। বাঘারপাড়ায় ১লাখ ৬৪ হাজার ৪৩৩ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে   ৮৪ হাজার ৫১০ পিস বই। ঝিকরগাছায় ২লাখ ৮০ হাজার ৯৩ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে   ১ লাখ ২৫ হাজার ২৪৪ পিস বই। চৌগাছায় ২ লাখ ৪৫ হাজার ৪৬০ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে  ১লাখ ১৫ হাজার ২৪৪ পিস বই। কেশবপুরে ২ লাখ ১৫ হাজার ১৫২ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে   ৪৬ হাজার ২২১ পিস বই। অভয়নগরে ২ লাখ ৭২ হাজার ৫৮১ পিস বইয়ের মধ্যে এসে পৌঁছেছে   ১লাখ ৪ হাজার ৩৩৪ পিস বই।

এদিকে মাদ্রাসার দাখিলে এসেছে মাত্র ২০ শতাংশ বই।

সাতক্ষীরায় ভারতে পাচারকালে ২০ ভরি ওজনের স্বর্ণের বারসহ আটক-১

সাতক্ষীরায় ভারতে পাচারকালে ২০ ভরি ওজনের স্বর্ণের বারসহ আটক-১
সাতক্ষীরায় সীমান্ত দিয়ে স্বর্ণের বার ভারতে পাচারকালে আটক -১


আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃ
ভারতে পাচারকালে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর সংলগ্ন লক্ষিদাড়ি সীমান্ত থেকে ২০ ভরি ওজনের দুই পিচ স্বর্ণের বারসহ এক চোরচালানীকে আটক করেছে বিজিবি। জব্দকৃত স্বর্ণের বারের বাজার মূল্য ১৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

বুধবার(২৩ ডিসেম্বর)  বিকালে লক্ষিদাড়ি সীমান্ত থেকে তাকে আটক করা হয়। 
আটক চোরাচালানীর নাম ইয়াছিন হোসেন (৩২)। তিনি সাতক্ষীরা সদর উপজেলার সীমান্তবর্তী লক্ষীদাড়ি গ্রামের মোহাম্মদ গাজীর ছেলে।

বিজিবি জানায়, স্বর্ণের একটি বড় চালান ভারতে পাচারের জন্য ভোমরা স্থলবন্দর সীমান্ত এলাকায় আনা হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, বিজিবি ভোমরা বিওপি'র টহলরত সদস্যরা ভোমরা স্থলবন্দর সংলগ্ন লক্ষিদাড়ি সীমান্ত এলাকায় অভিযান চালায়।
এ সময় সেখান থেকে ২০ ভরি ওজনের ২ পিচ স্বর্ণের বারসহ চোরাচালানী ইয়াছিন গাজীকে হাতেনাতে আটক করে। 

সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল গোলাম মহিউদ্দীন খন্দকার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় আটক চোরাচালানীর বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

বাংলাদেশ এডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়েশন কমিটির সহ-সভাপতি হলেন মণিরামপুরের নবাগত এসিল্যান্ড

বাংলাদেশ এডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়েশন কমিটির সহ-সভাপতি হলেন মণিরামপুরের নবাগত এসিল্যান্ড
পলাশ কুমার দেবনাথ

মণিরামপুর, যশোর: বাংলাদেশ এডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়েশন ৩৫তম ব্যাচের কার্যনির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি হলেন মণিরামপুরের নবাগত সহকারি কমিশনার (ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথ। 

এর আগে পলাশ কুমার দেবনাথ অত্যন্ত সুনামের সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসাবে কর্মরত ছিলেন। পলাশ কুমার দেবনাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কৃতি শিক্ষার্থী।

বড়লেখায় ৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থীকে ১১,৫০০-টাকা অর্থদন্ড

বড়লেখায় ৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থীকে ১১,৫০০-টাকা অর্থদন্ড


আকরাম হোসাইন মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা পৌরসভা নির্বাচন আচরণবিধি প্রতিপালন মনিটরিং ও নিশ্চিতকরনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এ সময় ৩ জন সংরক্ষিত আসনের মহিলা প্রার্থীসহ মোট ৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থীকে বিধিবহির্ভূতভাবে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য মোট ১১,৫০০/- টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করা হয় ও সতর্ক করা হয়। অন্যান্য প্রার্থীগন যাদের ইতোপূর্বে অর্থদন্ড প্রদান করা হয়েছিল কিন্তু এখনো সংশোধন করেননি, তাদেরকে আবারো সতর্ক করার জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসারকে বলা হয়।মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন।জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, মৌলভীবাজারের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মো. তানভীর হোসেন।

বড়লেখায় ৫০টি "ক" শ্রেণীর গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে

বড়লেখায় ৫০টি  "ক" শ্রেণীর গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে


আকরাম হোসাইন মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি :: মুজিববর্ষ উপলক্ষে  মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় নির্মিতব্য "ক" শ্রেণীর (ভূমিহীন ও গৃহহীন) ঘর নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বড়লেখা মোঃ শামীম আল ইমরান। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ উবায়েদ উল্লাহ খান এবং সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা । উল্লেখ্য বড়লেখা উপজেলায় ৫০টি  "ক" শ্রেণীর গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে।

উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে তানিসা খাতুন

 উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে তানিসা খাতুন
ঝিকরগাছা নিবার্হী অফিসারের কাছ থেকে সনদ গ্রহণ করছে তানিসা খাতুন-কপোতাক্ষ নিউজ
স্টাফ রিপোর্টার: উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে তানিসা খাতুন। যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে উপজেলা পর্যায়ে গত ১২ ডিসেম্বর উপজেলা শিক্ষা অফিসে উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত প্রতিযোগিতায় উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ গঙ্গানন্দপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী তানিসা খাতুন অংশ নিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন। তার এই অসাধারণ সফলতার জন্য বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করেছেন এবং তার উত্তর উত্তর সফলতা কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আমিনুর রহমান, প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান, শিক্ষানুরাগী সদস্য  প্রভাষক মহসীন আলী ,সদস্য সামছুর রহমান, কামরুজ্জামান ও শিউলী খাতুন । সে অত্র বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগের  ছাত্রী, যার ক্লাস রোল -৩। সে উপজেলার ২ নম্বর মাগুরা ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামের বিপ্লব হোসেনের কন্যা।

দড়িকান্দি সারোয়ার হোসেন আউডিয়াল মাদ্রাসায় জরুরি মত বিনিময় সভা

দড়িকান্দি সারোয়ার হোসেন আউডিয়াল মাদ্রাসায় জরুরি মত বিনিময় সভা


আব্দুর রাজ্জাক, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি: হরিরামপুর উপজেলা  দড়িকান্দি সারোয়ার হোসেন হাফিজিয়া  আউডিয়াল মাদ্রাসা ও এতিমখানায়  প্লে গ্রুপ - থেকে ১ম শ্রেনী পর্যন্ত ২০২১ইং শিক্ষা বর্ষের  ভর্তি শুরু হয়েছে। এই ব্যাপারে আজ ২৩ শে ডিসেম্বর বুধবার 
এক জরুরি মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
  
উক্ত মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওবায়দুর রহমান বাবুল
সভাপত্বি করেন আব্দুল ওহাব দড়িকান্দি সারোয়ার হোসেন আউডিয়াল মাদ্রাসা, হরিরামপুর। 

পরিচালনায় ছিলেন হাঃ মাওঃ আলী আজম 
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য পেশ করেন আবুল বাশার সবুজ, জাহিদুর রহমান তুষার  চেয়ারম্যান বয়ড়া ইউনিয়ন পরিষদ, হরিরামপুর  হাঃ শহিদুল্লাহ,  প্রধান শিক্ষক আন্ধারমানিক হাফিজিয়া মাদ্রাসা, জালাল মাস্টার  ,হাঃ মাওঃ খলিলুর  রহমান,হাঃ মাওঃ জাহিদুর  রহমান,প্রিন্সিপাল মতলপুর আদর্শ দাখিল মাদ্রাসা,মাওঃ রবিউল ইসলাম ভাইস প্রিন্সিপাল মতলবপুর আদর্শ দাখিল মাদ্রাসা ,হাঃ মাওঃ বাদশা মিয়া,মোঃ হানিফ খান,সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ।সকলে মাদ্রাসার সার্বিক কল্যাণ ও উন্নতি সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা পেশ করেন। 

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন হাঃ মিজানুর  রহমান ,হাঃ মাওঃ আব্দুর রাজ্জাক ,হাঃমাঃ মাহফুজ, হরিরামপুর,মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক  হাঃ মাওঃ রমজান আলী সহ অত প্রতিষ্ঠান ছাত্র /ছাত্রীদের অভিভাবকগন এবং প্রতিষ্ঠান সার্বিক মঙ্গল কামনা করে দোয়ার মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত হয়।

নওগাঁ-বদলগাছী আঞ্চলিক মহাসড়ক টি মরণ ফাঁদ

নওগাঁ-বদলগাছী আঞ্চলিক মহাসড়ক টি মরণ ফাঁদ


রহমতউল্লাহ আশিকুজ্জামানর  নুর ,নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি:নওগাঁ-বদলগাছী আঞ্চলিক মহাসড়কটিদীর্ঘদিন যাবত সংস্কারের অভাবে বেহাল অবস্থা এ যেন এক মরণফাঁদ । নিমিষেই ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা , পিচ উঠে সড়কটির অসংখ্য স্থানে ভাঙাচোরা, খানাখন্দ ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে যা গাড়ি উল্টে ঘটতে পারে  দুর্ঘটনা ।আঞ্চলিক মহাসড়কটি নওগাঁ ও জয়পুরহাট জেলার সংযোগস্থল যা দিয়ে প্রতিনিয়ত  বালু, ইট, পাথর ও পণ্যবাহী ভারী ট্রাক চলাচল করায় সড়কটির অধিকাংশ স্থানই দেবে গেছে। এতে করে ছোট-বড় ধরণের দুর্ঘটনার পাশাপাশি ভোগান্তি পোহাচ্ছে হাজার হাজার পথচারী। একাধিক জেলা ও কয়েকটি উপজেলার কয়েক লাখ মানুষের চলাচলের জন্য একমাত্র এই আঞ্চলিক মহাসড়কটি দ্রুত আধুনিকমানের সড়কের মানে নতুন করে সংস্কার করার দাবী বৃহত্তর নওগাঁবাসীর। তবেই এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক চাকা আরো সচল হবে। বদলে যাবে এই অঞ্চলের মানুষদের জীবনমান সূত্রে 

 সড়ক ও
 জনপথ (সওজ) বিভাগের আওতায় নওগাঁ থেকে বদলগাছী উপজেলা সদর পর্যন্ত এই আঞ্চলিক মহাসড়কটির দৈর্ঘ্য ২০কিলোমিটার। ২০কিলোমিটারের পুরো সড়ক জুড়েই অসংখ্য খানাখন্দ তৈরি হয়েছে। রাস্তাটির বেশ কিছু স্থানে দেবে এবং পিচ উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে পড়ে ভারী পণ্যবাহী ট্রাক প্রায়ই আটকে যাচ্ছে। কোথাও কোথাও রাস্তায় বড় বড় ঢিবি তৈরি হয়েছে। সড়কের পাহাড়পুর বাজার, কীর্ত্তিপুর বাজার, হতে বদলগাছি সদর পর্যন্ত  সড়কটির অবস্থা সবচেয়ে বেশি খারাপ। যা নওগাঁ সদর হতে বদলগাছী সদরে পৌছাইতে সময় লাগতো ২০ থেকে ২৫মিনিট তাই এখন প্রায় এক ঘন্টা ৪৫ মিনিট লেগে যায় । খানাখন্দে ভরা সড়কটিতে প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। নষ্ট হচ্ছে যানবাহন আর দীর্ঘ হচ্ছে ভোগান্তি।

রাস্তাটি  সর্বশেষ ২০১৫সালে  সংস্কার ও প্রশস্তকরণ কাজ করা হয়। এরপর সড়কটিতে আর কোনো সংস্কার কাজ করা হয়নি। নওগাঁ থেকে এই সড়ক দিয়েই জায়পুরহাট, পঞ্চগড়, দিনাজপুর, রংপুর জেলাসহ দেশের অন্যান্য জেলা এবং নওগাঁ জেলার পত্নীতলা, সাপাহার, মহাদেবপুর ও ধামইরহাট উপজেলাবাসীর চলাচলের একমাত্র প্রধান সড়ক এটি। এছাড়াও ঐতিহাসিক পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার বা (সোমপুর বিহার) যাবার এটিই একমাত্র প্রধান সড়ক। রাস্তাটি ২২টনের বেশি যান চলাচলের উপযোগী নয়, কিন্তু এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন ৩০থেকে ৪০টন ওজনের পণ্যবাহী যানবাহনও চলাচল করে। প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে ছোট-বড়সহ ৫থেকে ৭হাজার যানবাহন চলাচল করে।
তবে রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় হেয়ারিং ও পিস দেওয়া হলেও রাস্তাটি পুরোপুরি সংস্করণ করা না হলে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ,রাস্তাটির দুই পাশে ঢালু মাঝখানে উঁচু এর ফলে দেখা যাচ্ছে ভারী যানবাহন ও ছোট যানবাহন গুলি নিমিষেই উল্টে যেতে পারে এতে করে প্রাণহানী ঘঠতে  পারে ,ভুক্তভোগী পথচারী  সকলে জানাই রাস্তাটি সংস্করণ করলে বিভিন্ন দুর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষা পাবে ।

সখীপুরে রিসোর্স টিচারদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের মতবিনিময়

সখীপুরে রিসোর্স টিচারদের সাথে  উপজেলা প্রশাসনের মতবিনিময়

 
 ডা.এম.এ.মান্নান ,টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:
টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার ১৭ টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মরত রিসোর্স টিচারদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের  সাথে মতবিনিময় সভা আজ বুধবার,২৩ ডিসেম্বর ২০২০ খ্রি.দুপুর ১২.০০ টায় উপজেলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। 

মতবিনিময় সভায় সখীপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জনাব মফিজুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সখীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার চিত্রা শিকারী।

 মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সখীপুর পি,এম পাইলট গভঃ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ কেবিএম খলিলুর রহমান, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মনসুর আহমেদ, সখীপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি শাকিল আনোয়ার, সখীপুর উপজেলা ইন্সট্রাক্টর আব্দুস সোবহান,  সখীপুর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ রিসোর্স টিচার্স এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো: আমিনুল ইসলাম।

 মতবিনিময় সভায় সখীপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ১৭ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের রিসোর্স টিচারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম-ঢাকার সৌজন্যে শীতবস্ত্র বিতরণ

আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম-ঢাকার সৌজন্যে  শীতবস্ত্র বিতরণ

মোঃ রশিদুল ইসলাম রিপন,লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি: আজ বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) বিকাল ৩টায় আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলা শাখা কার্যালয়ে আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলা শাখার উদ্যোগে আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম-ঢাকার সৌজন্যে ৮০জন শীতার্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

শীতবস্ত্র বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক ও আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলা শাখার সভাপতি আবু জাফর, সাবেক সিভিল সার্জন ও আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলা শাখার আজীবন সদস্য ডাঃ কাশেম আলী, আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলা শাখার কার্য্যনির্বাহী ও আজীবন সদস্য ময়নুল ইসলাম, আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলা শাখার সম্পাদক ও আজীবন সদস্য রফিকুল আলম খান স্বপন। এ সময় সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার সম্পাদক, মাসুদ রানা রাশেদ, প্রকাশক রমজান আলী, হেলাল হোসেন কবিরসহ অন্যান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

হালুয়াঘাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

হালুয়াঘাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত


আর.জে মিজানুর রহমান ইমনঃ ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে, হালুয়াঘাট উপজেলার গোবরাকুড়া সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে খায়রুল ইসলাম (৪৮) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে । জানা যায়, (২২ই ডিসেম্বর) মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের নো ম্যানস ল্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে । নিহত খায়রুলের বাড়ি উপজেলার গোবরাকুড়া গ্রামে । বর্ডার গার্ড  বাংলাদেশের (বিজিবি) গোবরাকুড়া ক্যাম্প ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, খায়রুল রাতে গোবরাকুড়া সীমান্ত দিয়ে ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেন । এ সময় ভারতের মেঘালয় রাজ্যের তুরা জেলার গাছুয়াপাড়ায় বিএসএফের টহল দল তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় । ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় খায়রুলকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়, পরে রাতে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয় ।

মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানব বন্ধন করেছে ময়মনসিংহ জেলা শাখা

 মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানব বন্ধন করেছে ময়মনসিংহ জেলা শাখা



আর.জে মিজানুর রহমান ইমনঃ ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধিঃ "মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটি" সাধারণ সম্পাদক, সালেহ আহম্মেদ হৃদয়ের বিরুদ্ধে তার স্ত্রী সুমাইয়া আক্তার লিপির ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে (২২ই ডিসেম্বর) মঙ্গলবার ময়মনসিংহ  প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটি ময়মনসিংহ জেলা শাখার নেত্ববৃন্দ ।

 এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটি, ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি মোঃ জিয়াউল হক জিয়া, সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিক আহমেদ, 
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ মোঃ রিয়াদ উদ্দিন, সহ সভাপতি নাদিরা সুলতানা হেপি, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আরিফুজ্জামান শান্ত, 
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আনোয়ার হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আলিবুর রহমান শিপু, সহ মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটি ময়মনসিংহ জেলা শাখার অধীনস্থ বিভিন্ন উপজেলা কমিটির নেত্ববৃন্দ সহ আরো অনেকেই ।

মানবিক ভালোবাসার নাম Universal Amity

মানবিক ভালোবাসার নাম Universal Amity

জবি প্রতিনিধিঃ ফুডফরগুড প্রকল্পের ২০০ দিনের মাইলফলক:চাই মানবিক ভালোবাসা, চাই ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত পৃথিবী। এই সুন্দর স্বপ্ন লালন করেই ২০১৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক মেহেদী হাসান গড়ে তুলেন মানবিক সংগঠন Universal Amity. আর সেই থেকে গেয়ে যাচ্ছেন মানবিকতার জয়গান। আর তার সাথে সুর মিলাচ্ছে একদল মানবিক সহযোদ্ধা। যেখানেই মানবতা ভূলুন্ঠিত কিংবা স্বাধীনতা পরাভূত সেখানেই ছুটে যাচ্ছে ইউনিভার্সাল এমিটি। কখনো ক্ষুধার্ত মানুষের হাতে তুলে দিচ্ছে আহার, কখনো বা শীতার্ত মানুষকে কম্বল দিয়ে জড়িয়ে নিয়ে ছড়াচ্ছে ভালোবাসার উষ্ণতা। লকডাউনে ঘরবন্দি মানুষগুলো যখন মৃত্যু শংকায় কম্পমান তখনো কিছু মানবিক কোমল হৃদয়ের মানুষ নিজেকে সেরা সৃষ্টি প্রমাণ করতে ঘরের বাহির হয়েছে। করোনার মৃত্যুকে তুচ্ছজ্ঞান করে তারা ক্ষুধিতের যন্ত্রণায় হয়েছে কাতর। সেই কাতরতা তাদেরকে করেছে মানবিক, করেছে আরও বেশি উজ্জ্বল। অনেক অনিশ্চয়তা আর উৎকণ্ঠার মাঝেই গত ৭ জুন ইউনিভার্সাল এমিটি শুরু করেছিল ফুডফরগুড প্রকল্প যার মাধ্যমে প্রতিদিন একবেলা আহার যুগিয়েছে ঢাকায় খোলা আকাশের নিচে বাস করা প্রায় শ' খানেক ছিন্নমূল মানুষের জন্য। আজ এই প্রকল্পের ২০০ তম দিন। লক্ষ্য প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে মহান স্বাধীনতা। যে স্বপ্ন নিয়ে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানেরা এনেছিল একটি স্বাধীন মানচিত্র সেই মানচিত্রে ক্ষুধা আর দারিদ্র্য থাকতে পারে না। এই দেশপ্রেমের মহিমায় আচ্ছাদিত ইউনিভার্সাল এমিটি ৪৯ তম বিজয় দিবসও পালন করেছে ভিন্নভাবে। নিজ হাতে খাবার রান্না করে ১৬ ডিসেম্বরের রাত ১২ টা ১ মিনিটে খুলনা শহরের ভাসমান অসহায় ১০০ মানুষের হাতে তুলে দিয়েছে খাবার আর ভালোবাসার উষ্ণতা জড়ানো কম্বল দিয়ে হেসেছে বিজয়ের হাসি। 

এর আগে গত নভেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে উইন্টারকেয়ার প্রকল্পের মাধ্যমে উত্তরবঙ্গের তিন জেলা পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটে দুঃস্থ অসহায় প্রায় ২০০০ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে ভারী কম্বল। তার পরের সপ্তাহে খুলনার পাইকগাছায় দেয়া হয় ৮০০ কম্বল। ডিসেম্বরের ১১ তারিখ এ প্রকল্পের আওতায় কম্বল বিতরণ করা হয় ঢাকার শতাধিক ছিন্নমূল মানুষের মাঝে। সর্বশেষ খুলনার কয়রা ও সাতক্ষীরার আশাশুনিতে আম্ফান ঝড়ে সর্বস্ব হারানো প্রায় ১০০০ শীতার্ত মানুষের কাছে কম্বল পৌঁছে দিয়েছে মানবিক এই সংগঠনটি। আগামী সপ্তাহে গাইবান্ধা, রংপুর ও নীলফামারীতে আরও সহস্রাধিক কম্বল বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে তারা। এছাড়াও Income Aid প্রকল্পের মাধ্যমে কুড়িগ্রামের অসহায় প্রায় ১০০ পরিবারের কাছে তুলে দেয়া হয়েছে গবাদি পশু (গরু- ছাগল), সেলাই মেশিন সহ অন্যান্য সামগ্রী। আম্ফান ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত কিছু মানুষকে ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে ইউনিভার্সাল এমিটি। Lifeline প্রকল্পের আওতায় ২০ টা টিউবওয়েল স্থাপণ করে প্রায় ১৫০ টি পরিবারের সুপেয় ও নিরাপদ পানির ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। অসহায় ও দরিদ্র ২০ জন শিক্ষার্থীর স্নাতকোত্তর পর্যন্ত শিক্ষার দায়িত্ব নিয়েছে Universal Amity. দরিদ্র মুসল্লিরা যেন নির্বিঘ্নে নামাজ আদায় করতে পারে সেজন্য আম্ফান দূর্গতদের  অঞ্চলে চলছে মসজিদ নির্মাণের মত মহতি কাজ। ফিজিক্যাল চেলেঞ্জ যাদের জীবন স্তব্ধ করেছে তাদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ করেছে বেশ কয়েকটি।  সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতার সাথে কথা বলে জানা যায় সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক এই মানবিক সংগঠনটির লক্ষ্য হলো ছোট ছোট দানগুলোকে একত্রিত করে প্রকৃত অসহায় ও দুঃস্থ মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানো। দেশ বিদেশের অসংখ্য মানবিক মানুষ এই সংগঠনে অর্থ ও সাহায্য পাঠিয়ে পাশে দাঁড়ায় অসহায় মানুষ।  সৃষ্টিকর্তা আমাদের শ্রেষ্ঠ জীব করে পাঠিয়েছেন এই ক্ষণস্থায়ী পৃথিবীর বুকে। কিন্তু শ্রেষ্ঠ মানুষ তারাই যারা জীবসত্তাকে মানবসত্তায় উন্নীত করতে পারে। মানবিক হবার এই সুন্দর প্রচেষ্টায় সকলে মিলে ইউনিভার্সাল এমিটির সাথেই থাকুন। মানবিক আন্দোলন নিয়ে এই সংগঠনটির যে পথচলা শুরু হয়েছিল ভবিষ্যতেও এই যাত্রা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

বঙ্গোপসাগরে ভারতীয় ফিশিং ট্রলার সহ ১৬ জেলে আটক

বঙ্গোপসাগরে ভারতীয় ফিশিং ট্রলার সহ  ১৬ জেলে আটক

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃ অবৈধভাবে বাংলাদেশের জলসীমায় অনুপ্রবেশকারী ভারতীয় ফিসিং ট্রলার এফ,বি মঙ্গল চন্ডী-৭ সহ ১৬ জেলেকে আটক করেছে কোস্ট গার্ড। 

গতকাল মঙ্গলবার রাত ১০টা ৫০ মিনিটের সময় কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোনের জাহাজ অপরাজেয় বাংলা গভীর সমুদ্রে টহলরত অবস্থায় বাংলাদেশের জলসীমায় অবৈধভাবে প্রবেশকারী এ ফিসিং ট্রলারটি আটক করে।

বাংলাদেশ-ভারত জলসীমার ১০.২ নটিকাল মাইল ভিতরে এদেশের জলসীমায় মাছ ধরছিল ভারতীয় জেলেরা। আটককালে তাদের কাছে কোন রকম আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া যায়নি বলে জানায় কোস্ট গার্ড। ২৩ ডিসেম্বর বিকেলে আটককৃত ট্রলার ও ১৬ জেলেকে মোংলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে সমুদ্র সীমা লংঘন আইনে মামলা দায়েরের পর ২৪ ডিসেম্বর বাগেরহাট জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে বলে জানিয়েছে মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী।

এদিকে আটক ট্রলারে থাকা মাছ মোংলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ জাহিদুল ইসলামের উপস্থিতে নিলামে বিক্রি করে টাকা সরকারী কোষাগারে জমা দেয়া হয়েছে। 

এর আগে গত ২ডিসেম্বর আরো একটি ভারতীয় ট্রলারসহ ১৭ ছেলেকে একই এলাকা থেকে আটক করে কোস্ট গার্ড।

লোহাগড়াতে গুড়িয়ে দিয়েছে একাধিক অবৈধ ইটের ভাটা

লোহাগড়াতে গুড়িয়ে দিয়েছে একাধিক অবৈধ ইটের ভাটা

মো: আজিজুর বিশ্বাস,ষ্টাফ রিপোর্টার নড়াইলঃনড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার শালনগর ইউনিয়নের শিয়রবর গ্রামের সুরমা ব্রিকস, রামকান্তপুর গ্রামের এম.কে.এইচ.কে ব্রিকস, কালনা গ্রামের মধুমতি ব্রিকস ও বসুপটি গ্রামের চিত্রা ব্রিকস নামের চারটি অবৈধ ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমান আদালতের স্পেশাল টিম।

পরিবেশ অধিদপ্তরের সদর দপ্তর ঢাকার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রোজিনা আক্তারের নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমান আদালতের স্পেশাল টিম  ২৩ ডিসেম্বর এ অভিযান পরিচালনা করেন।

 এ সময় স্পেশাল টিমের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সাইদ আনোয়ার ও সহকারী পরিচালক হারুন অর রশিদ।উপ-পরিচালক সাইদ আনোয়ার গনমাধ্যমকর্মীদের জানান, বায়ু দূষন রোধে সমগ্র বাংলাদেশের ন্যায় নড়াইলেও অবৈধ ইট ভাটা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

এ সময় তিনি আরও জানান পরিবেশের ক্ষতি করে এরকম অবৈধ ইটভাটা, স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল সংলগ্ন ও জনবহুল এলাকায় যত অবৈধ ইটভাটা আছে সব ইটভাটা পরিবেশ অধিদপ্তরের নীতিমালা অনুসারে উচ্ছেদ করা হচ্ছে। সবুজ বাংলাদেশ গড়তে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ছোট হাতে বড় সংসারের দায়িত্ব নিতে চায় স্কুল ছাত্র সোহেল

ছোট হাতে বড় সংসারের দায়িত্ব নিতে চায় স্কুল ছাত্র সোহেল


ডা.এম.এ.মান্নান,টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:
বয়স ১০ ছুঁই ছুঁই। নাম সোহেল রানা। ভালোবেসে সবাই সোহেল বলেই ডাকে। দুরন্ত চঞ্চলা ওই শিশু ঘুনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীতে পড়ালেখা করে। ছুটি পেলেই বেরিয়ে পরে পাঁচ সদস্যের পরিবারের এক মাত্র উপার্জনকারী বাবার আয়ের যোগান দিতে। ওই শিশুর বাবা একজন কাঠ মিস্ত্রী। ঘরের কাজে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে কাজ করাই তার পেশা। রোজগার হলেই জ¦লে চালের চুলো। তাই করোনায় দীর্ঘ কয়েক মাস স্কুল বন্ধ থাকায় প্রায়ই তাকে দেখা যায় বিভিন্ন ক্ষেত খামারে কিংবা সুপারি গাছের আগায় ওই শিশুকে। 

ওই শিশু নাগরপুর উপজেলার গয়হাটা ইউনিয়নের ঘুনি এলাকার আলতাফ হোসেনের ছেলে। তাঁর দুই মেয়ে এবং এক ছেলে। তারা সবাই স্কুলে পড়ে। তার সংসারের খরচ যোগাতেই হিমসিম খেতে হয় তার মধ্য ছেলে-মেয়েদের স্কুলের খরচ। নিজের বলতে এক চিলতে জমিতে একটি টিনের ঘর ছাড়া কিছুই নেই। এরকম আরও পাঁচ-ছয় জন শিশুরা আছে এলাকায়। কেউ কেউ সখের বসেও দিগন্তের শষ্যের ক্ষেত খামারে ঘুরে বেড়ায় নিজেদের চাহিদা মিটানোর কাজে।

সরেজমিনে আরও জানা যায়, ফসলের মাঠে ঝরে পড়া ও ইঁদুরের গর্ত থেকে ধান সংগ্রহের আনন্দে মেতেছে হতদরিদ্র শিশুরা। প্রতি বছর ধান কাটা শেষ হতেই ঝরে পড়া ধান কুড়াতে ব্যস্ত সময় পার করে একদল শিশু-কিশোর এমনকি বৃদ্ধারাও। ধান সংগ্রহ করে কেউ সংসারের খোরাক যোগায় কেউ বা ধান বিক্রি করে শার্ট, প্যান্ট, জুতা, শীতের পোশাক কিনবে কেউ বা খাবে শীতের পিঠা।

বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ থেকে কৃষকরা ধান নিয়ে যাওয়ার পর একদল শিশু-কিশোর হাতে খুন্তি-শাবল, চালন, ব্যাগ নিয়ে খুঁজে ফিরছে ইঁদুরের গর্ত। ইঁদুরের গর্তে জমানো ধান ব্যাগে ভরে তারা। এছাড়া জমিতে পড়ে থাকা ধানও কুড়িয়ে ব্যাগে ভরতে দেখা গেল। এমন সময় দেখা মেলে ওই শিশু সোহেলের। ঠিকানা নিয়ে বাড়িতে গিয়ে কথা হয় পরিবারের ও আশপাশের লোকজনের সাথে।

অভাব অনটনের সংসারে সুযোগ পেলেই দিক বেদিক ছুটে সোহেল। কখনো মাটি খুড়ে কচুর মহি, কচুর লতি, ইঁদুরের গর্ত খুড়ে ধান এমনটি বিভিন্ন গাছ থেকে চুক্তি নিয়ে কাজ করে আনে নগদ টাকা অথবা সুপারি। পুরোটাই তুলে দেয় মা বাবার হাতে।

মাঠে ধান সংগ্রহ করতে আসা ওই শিশু জানায়, বিভিন্ন মাঠে ইঁদুরের গর্ত থেকে ধান সংগ্রহ করি। কখনো কচুর মহি কখনো গাছ থেকে চুক্তিতে সুপারি পেরে যা পাই সব মায়ের কাছে দেই। বাবা অনেক কষ্ট করে আমাদের জন্য তাই বসে না থেকে আমি এগুলোই করি। পড়ালেখা করে বড় হয়ে মা বাবার পাশে দাঁড়াবো। 

ঘুনি এলাকার কৃষক আঞ্জু মিয়া জানান, ধান কাটার পর মাটিতে পড়ে থাকা ধান শিশু-কিশোররা সংগ্রহ করে, এতে আমরা বাধা দেই না। এছাড়া গ্রামের হতদরিদ্র পরিবারের শিশুরাই দল বেঁধে ধান সংগ্রহ করে। তবে তাদের সাবধান করি গর্তে বিষাক্ত সাপ থাকতে পারে বলে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে ধান কাটা ও মাড়াই চলছে। এবার ধানের দাম বেশি পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। এক মণ ধান বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১১'শ থেকে ১২'শ টাকায়। এ বছর উপজেলায় ২ হাজার ৩৫০ হেক্টর জমিতে রোপা আমনের আবাদ হয়েছে। যার উৎপাদন লক্ষ মাত্রা ৮ হাজার ২২৫ মেট্রিক টন ধান। প্রবল বন্যার কারণে ধান রোপন এবং কর্তন সব দিকেই পিছিয়ে আছে কৃষকরা।

নাগরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মতিন বিশ্বাস  জানান, খেতে এভাবে ইঁদুরের গর্ত থেকে ধান সংগ্রহ করা অনিরাপদ এবং ঝুকিপূর্ণ। তবে আধুনিক লগো পদ্ধতিতে ১০ লাইন পর পর এক লাইন গ্যাপ দিয়ে ধান রোপন করলে ইঁদুরে ধান নষ্ট কম করে। এতে করে আলো চলাচলের সুযোগ পায় ফলনও ভাল হয় কৃষকরাও উপকৃত ও লাভবান হবেন।

ভূমি ও গৃহহীনদের মাঝে বরাদ্দকৃত গৃহ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন

ভূমি ও গৃহহীনদের মাঝে বরাদ্দকৃত গৃহ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন

 

আজহারুল ইসলাম সাদী, স্টাফ রিপোর্টারঃ মুজিববর্ষের সেরা উপহার, ভূমি ও গৃহহীনদের ঘর উপহার।
এই শ্লোগানে ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে, প্রধান মন্ত্রীর বরাদ্দকৃত গৃহ নির্মাণ কাজের, অগ্রগতি পরিদর্শন করলেন, সাতক্ষীরা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবাশীষ চৌধুরী।  

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বল্লী  ও ঘোনা ইউনিয়ন এর বরাদ্দকৃত ২০ টি ঘরের কাজে, কোন গাফিলতি বা তঞ্চকতা হচ্ছে কিনা তা সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ ইয়ারুল হক কে সাথে নিয়ে পরিদর্শন করেন। 

বল্লি ইউনিয়নেরন ৭নং রায়পুর গ্রামের সন্নাসীতলায় উদ্ধারকৃত খাসজমিতে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য ৪ টি ও ৮নং ঘরচালা গ্রামের ৫ টি ও ৪ নং ঘোনা ইউনিয়নের ৯ নং ভাড়ুখালি গ্রামে ১১টি ঘরের নির্মাণ কাজ  পরিদর্শন করেন।

এসময় ঘরের লিংটেল ও সানসেড ১০ মিমি রড ও বাইন্ডার হিসেবে ৮ মিমি রড গুনা সূতা দিয়ে বাইণ্ডিং করা হয়েছে কি না, তা আকস্মিকভাবে পরীক্ষা করে দেখা হয়।সেই সাথে সবাইকে দেখার অনুরোধ জানান।

উল্লেখ্য, মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী'র কার্যালয় হতে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য প্রথম পর্যায়ে ১৩০ টি ঘর বরাদ্দ এসেছে, নির্মানকাজ চলছে অব্যাহত গতিতে।