পশ্চিম সুন্দরবনে বনবিভাগের অভিযানে ১৫ বস্তা চিনিসহ ৭ মৌয়াল আটক

হুদা মালী, শ্যামনগর প্রতিনিধি:  সাতক্ষীরা রেঞ্জের পশ্চিম সুন্দরবনের কলাগাছিয়া অফিসের নিয়ন্ত্রণাধীন বাদুড়ঝুলি এলাকার কুমনিওয়ালা খাল থেকে ৭জন মৌয়াল ও ১৫ বস্তা চিনিসহ মধু তৈরির সরঞ্জাম আটক করেছে বনবিভাগ।

 ২১মে (শুক্রবার) রাত ৮ টার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মৌয়ালদের হাতে নাতে আটক করেছে বনবিভাগ। বুড়িগোয়ালিনী ফরেস্ট স্টেশন কর্মকর্তা সুলতান আহমেদ জানান গত বৃহস্পতিবার সকালে বুড়িগোয়ালিনী ফরেস্ট স্টেশন থেকে মধু কাটার জন্য পাশ নিয়ে যায়। গাবুরা ৯নং সোরা এলাকার আব্দুল হাকিম শেখের ১৪ জনের একটি মৌয়াল দল আছে তারা একত্রে হয়ে গভীর সুন্দরবনে প্রবেশ করে। শুক্রবার সন্ধ্যায় গোপন সংবাদে জানতে পারি উক্ত পাশকৃতরা চিনির বেশ কিছু বস্তা নিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশ করছে। তাৎক্ষণিক বিষয়টি এসিএফ এম এ হাছান স্যারকে জানানো হলে তিনি অভিযান পরিচালনা করার কথা বলেন।

 অভিযান পরিচালনা করে ৭ জনকে আটক করতে সক্ষম হই এবং তাদের কাছ থেকে ১৫ বস্তা চিনি,  ৩৫ টি ড্রাম (৩০ লিঃ  ধারণক্ষমতা সম্পন্ন পানি), ২টি মোবাইল সহ নগদ ৩০০০ টাকা আটক করতে সক্ষম হই।পরে দুইটি মোবাইল ও নগদ তিন হাজার টাকা আটককৃতদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, গাবুরা ইউনিয়নের ৯নং সোরা গ্রামের মৃত্যু নুরমান মোড়ল ছেলে সত্তার মোড়ল (৪৫) , মৃত্যু হাজের বৈদ্য ছেলে কুবাদ আলী (৫০) , মৃত্যু এলাহী বক্স মালীর ছেলে শাহাদাত (৫০) ,৯নং সোরা গ্রামের মৃত্যু সফদুল গাজীর ছেলে সাহেব আলী (৫২) , একই গ্রামের মৃত্যু ফুলচাদ গাজীর ছেলে মজিদ গাজী (৫০) ইয়াসিন গাজী (৪৫) ও পদ্মপুকুর ইউনিয়নের গড়কোমরপুর গ্রামের মোসলেম সানার ছেলে আবু বক্কর (৫২)।


 ১৪ জনের মধ্যে ৭জনকে আটক করা হয়েছে। বাকি ৭জন বহাল তবিয়তে সুন্দরবনের ভেতরে অবস্থান করছে বলে জানান ধৃতরা। বাকি ৭জন হলেন, কামরুল শেখ, আমজেদ ,শাহজাহান শেখ, হাকিম শেখ, মোহাম্মাদ মোড়ল, রেজাউল,ও রব্বানী। ঘটনা সুত্রে জানা যায় গাবুরা ইউনিয়নের হাকিম শেখ ও মোহাম্মদ মোড়ল দীর্ঘদিন ধরে কিছু অসাধু মৌওয়ালীদের দিয়ে অভিনব কায়দায় ভেজাল মধু তৈরী করছে। 

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, তারা দীর্ঘদিন ধরে ভেজাল মধু বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে। ১৯৭৪ সালের বিশেষ আইনে খাদ্যে ভেজাল দেয়ার অপরাধে তাদেরকে আটক করে কোর্টে প্রেরণ করেন।আটককৃত ৭ জনের স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দিতে যাদের নাম করা হয়েছে তারা সংশ্লিষ্ট মামলায় আসামি হবেন কিনা জানার জন্য কলাগাছিয়া অফিসের স্টেশন কর্মকর্তাকে বার বার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন না।

শেয়ার করুন

প্রকাশকঃ

অফিসঃ হাজী সিরাজুল ইসলাম সুপার মার্কেট, মোহাম্মদপুর মোড়, ছুটিপুর রোড, ঝিকরগাছা, যশোর।

পূর্ববর্তী প্রকাশনা
পরবর্তী প্রকাশনা