কুলাউড়ায় শিক্ষার্থীর অর্ধলক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিলো প্রতারক চক্র!

কুলাউড়ায় শিক্ষার্থীর অর্ধলক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিলো প্রতারক চক্র!

মোঃরেজাউল ইসলাম শাফি,কুলাউড়া উপজেলা প্রতিনিধিঃ উপবৃত্তির ১৫ হাজার টাকা জমা হয়েছে বলে কুলাউড়ার এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলে ৪৯ হাজার ৫শত টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্রের সদস্যরা। সোমবার (৫ এপ্রিল) এ ঘটনাটি ঘটে কুলাউড়া সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী সাদিয়া তাবাসসুমের সাথে। এ ব্যাপারে প্রতারণার শিকার ঐ শিক্ষার্থী বাদি হয়ে কুলাউড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

প্রতারণার শিকার ঐ শিক্ষার্থী জানান, সোমবার সকাল ১০টার দিকে (০১৬১০-০৭২৪৬৬) নাম্বার থেকে আমার পিতার নাম্বারে ফোন করে বলে আমার উপবৃত্তির ১৫ হাজার টাকা তার কাছে জমা আছে। উক্ত টাকা পাওয়ার জন্য আমার নাম্বারে একটি ভেরিফিকেশন কোড আসবে এই কোড দিলে তারা টাকা পাঠাবে। সাথে সাথে আবার ফোন করে বলে আমার নাম্বারে ১৫ হাজার টাকা আসবে না, এই টাকা পাওয়ার জন্য বিকাশ এজেন্টের কাছে যেতে হবে। আমি সাথে সাথে একটি বিকাশ এজেন্টের কাছে যাই।

বিকাশ এজেন্টের কাছে যাওয়ার পর ঐ লোক আমাকে আমার নিজের বিকাশ নাম্বারে ২৪ হাজার ৫শত টাকা ক্যাশ ইন করার কথা বললে আমি এজেন্টের দোকান থেকে আমার পার্সোনাল নাম্বারে ২৪ হাজার ৫শত টাকা পাঠানোর সাথে সাথে আমার বিকাশ অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে ফেলে।

তিনি আরও বলেন, কিছুক্ষণ পর ঐ লোক ফোন করে (০১৯৮৯-২১৪৮৮৮) নাম্বারে আরও ২৪ হাজার ৫শত টাকা পাঠানোর কথা বলে। সাথে সাথে আমি আরও ২৪ হাজার ৫শত টাকা ঐ নাম্বারে পাঠিয়ে দিয়। টাকা পাঠানোর পর ঐ প্রতারক আমাকে কিছুক্ষণ পর ফোন দিচ্ছে বলে ফোন রেখে দেয়। প্রায় ঘন্টা খানেক অপেক্ষায় থাকার পরও তার কোনো ফোন না পাওয়ায় তাকে উল্টো আমি ফোন দিলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। পরে বিষয়টি আমি বিকাশ অফিসে জানালে তারা থানায় অভিযোগ দেয়ার পরামর্শ দেন।

কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিনয় ভূষণ রায় বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।তিনি আর্থিক প্রলোভনে প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে টাকা লেনদেন না করতে শিক্ষার্থীদের সর্তক থাকতে বলেন।

লালমনিরহাটে আনসার সদস্যের বিষপানে আত্মহত্যা

লালমনিরহাটে আনসার সদস্যের বিষপানে আত্মহত্যা

রশিদুল  ইসলাম রিপন ,লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ   লালমনিরহাটে এক আনসার সদস্যের বিষপানে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।জানাগেছে, সোমবার (৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০ টায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। জেলার আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ী ইউনিয়নের গিলাবাড়ী গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হকেরে ছেলে ঈমান আলী (২১) বিষপানে আত্মহত্যা করেন। এতে ঐ এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

পরিবারের পক্ষ্য থেকে যানানো হয়েছে, ঈমান আলী আনসার ভিডিপিতে বান্দরবনে কর্মরত ছিলেন। গত ১০-১২ দিন আগে ছুটিতে বাড়ি আসেন। গত ৫/৬ মাস আগে মিথ্যা অভিযোগে শালিস বৈঠকের মাধ্যমে সাপ্টিবাড়ি বাজার সংলগ্ন ব্যবসায়ী শামসুল হকের অনার্স পড়ুয়া মেয়ে মোছাঃ হালিমা বেগমের (১৯) সাথে বিয়ে হয়। মোবাইল ফোনে পরিচয়ের মাধ্যমে তাদের মধ্যে কথা ও এসএমএস আদান প্রদান হয়। কিন্তু এর মধ্যেই মেয়ে বিয়ের দাবীতে ইমান আলীর বাড়িতে অবস্থান নেয়। পরে সেখানে শালিস বৈঠক বসে। শালিস বৈঠকে মেয়ে এবং মেয়ের পরিবার ঈমান আলীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয় যে, হালিমার সাথে শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হয়েছে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে শালিস বৈঠকের মাধ্যমে পারিবারিকভাবে তাদের বিয়ে দেয়া হয়। সব কিছু মেনে নিয়ে ইমান আলী হালিমাকে নিয়ে সংসার জীবন শুরু করে। এর মধ্যে ইমান আলী কয়েকদিন আগে ছুটিতে বাড়িতে আসে। গত রবিবার (৪ এপ্রিল) সকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ইমান আলী বিষপান করে। পরে হালিমার চিৎকারে বাড়ির সবাই তাকে উদ্ধার করে প্রথমে আদিতমারী থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে সেখান থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধিন অবস্থায় সোমবার সকালে তার মৃত্যু হয়। বিষপানে মৃত্যুর পরেও কোন ময়না তদন্ত ছাড়াই সোমবার সন্ধ্যার পরে মরদেহ বাড়িতে নিয়ে আসে ইমান আলীর মরদেহ। 

আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম জানান, যেহেতু রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে তাই তারাই বলতে পারবে কেন মরদেহের ময়না তদন্ত করা হয়নি। তবে এ ব্যাপারে সোমবার রাত ৮টা পর্যন্ত মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

মোংলায় সাংবাদিকের ওপর দুর্বৃত্তের হামলা

মোংলায় সাংবাদিকের ওপর দুর্বৃত্তের হামলা

মোঃএরশাদ হোসেন রনি,মোংলাঃ মোংলায় কর্মরত এক সাংবাদিকের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে আলী আজিম (২৮) নামে ওই সাংবাদিকের হাত ভেঙ্গে গেছে। সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। আলী আজিম ঢাকা থেকে প্রকাশিত 'দৈনিক গনকন্ঠেরথ মোংলা প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এদিকে এ ঘটনায় একজনকে আসামি করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই সাংবাদিক। 

অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে মোংলা থানার এএসআই মোঃ নাসির বলেন, আলী আজিম নামে ওই সাংবাদিক গতকাল রাত সাড়ে ৯টার সময় পেশাগত কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় মিলন নামে এক ব্যক্তি তাকে বেধড়ক মারপিট করে রাস্তায় ফেলে রেখে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেন। থানায় দায়ের হওয়া অভিযোগে এসব তথ্য উল্লেখ করা হয় বলেও জানান তিনি। 

মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় তদন্ত করে এর কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সাংবাদিক আলী আজিমের ওপর হামলাকারী মোঃ মিলন পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের মোর্শেদ সড়কের মোঃ হারুনের ছেলে বলে জানা গেছে। 

লকডাউনে বিপাকে শ্রমজীবী মানুষ

লকডাউনে বিপাকে শ্রমজীবী মানুষ

বছর ঘুরতে না ঘুরতে আবারও অনিশ্চয়তায় খেটে খাওয়া মানুষ। খেয়ে- না খেয়ে দিন কাটানোর শঙ্কা ভর করছে তাদের চোখে-মুখে। ২০২১ এর আগমনে বিষ মোচনের যে স্বপ্ন বুনেছিলেন- তা ফিঁকে হচ্ছে লকডাউন দুশ্চিন্তায়। কপালের ভাজ বাড়াচ্ছে, গেলো এক বছরে নেয়া ঋণের বোঝা। পরিস্থিতি সামাল দিতে, শ্রমজীবীদের সুরক্ষার বিষয় বিবেচনায় গঠনমূলক পরিকল্পনার পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের।

 
খেটে খাওয়া মানুষগুলোর কষ্টের দিনলিপি এখনো জীবিত চোখের সামনে। এখনো অভাব আর অপ্রাপ্তির খাতাও হয়তো দীর্ঘ হচ্ছে কারো কারো। অথচ, বছর না ঘুরতেই আবারো সামনে আসছে নিষ্ঠুর বাস্তবতা।লকডাউনের খবরে সত্তোরোর্ধ্ব আকরাম মিয়ার কপালে স্পষ্ট হচ্ছে চিন্তার ভাঁজ। কারণ, তার টিকে থাকার লড়াইটা যে প্রতি মুহূর্তের। শুরুর দিন এদিক-ওদিক করে খানিকটা আয় হলেও, অজানা শঙ্কা ভর করছে প্রতিনিয়ত।

গেলো বছরের লকডাউনে কাজ হারিয়েছেন অসংখ্য দিন মজুর। যাদের বড় একটা অংশই ফিরতে পারেননি আগের অবস্থায়। ফলে, এক রকম মরেও বেঁচে থাকার যন্ত্রণা এখনো তাড়া করছে তাদের। অনেকেই জড়িয়েছেন ঋণের জালে। কেউ ত্যাগ করেছে এই শহরের মায়া। তাই, এবারের পরিস্থিতি নিয়ে বড় হচ্ছে দুশ্চিন্তা।অর্থনীতিবিদদের মতে পরিকল্পনাবিহীন এই লকডাউন সবচেয়ে বেশি ভোগাবে নিম্নআয়ের মানুষকে। বরং, দোকানপাট বন্ধ না রেখে দরকার ছিল বিকল্প ও গঠনমূলক পরিকল্পনার। ব্র্যাকের গবেষণা অনুযায়ী, গেলো বছরের লকডাউনে আয় কমেছিল অন্তত ৭০ শতাংশ গরীব মানুষের।

মোঃ শাকিল আহমেদ 
চৌহালী সরকারি কলেজ
চৌহালী, সিরাজগঞ্জ। 

মোংলায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন সিভিল সার্জন

মোংলায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন সিভিল সার্জন

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃমোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওটি এটেনডেনট মহিউদ্দিন খাঁনকে লাঞ্চিত করেছে গুডলাক ওষুধ কোম্পানীর রিপ্রেজেনটেটিভ সৌরভ হালদার। মঙ্গলবার সকালে ওষুধ কোম্পানীর ওই প্রতিনিধি হাসপাতালে গিয়ে হাসপাতালের স্বাভাবিক কাজ কর্মে বাঁধা সৃষ্টি করলে তা থেকে তাকে বিরত থাকার জন্য বলা হলে হাসপাতালের ষ্টাফ মহিউদ্দনকে লাঞ্চিত করেন তিনি। 

হাসপাতাল সূত্র জানায়, গুডলাক ওষুধ কোম্পানীর রিপ্রেজেনটেটিভ সৌরভ হালদার দীর্ঘদিন ধরে  বেআইনিভাবে হাসপাতালের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে জরুরী বিভাগসহ বিভিন্ন জায়গায় যাওয়া রোগীদের নানাভাবে বিরক্ত ও হয়রানী করে আসছিলেন। মঙ্গলবারও তিনি জরুরী বিভাগের সামনে অবস্থান নিয়ে হাসপাতালে আসা রোগীদের টেনে হিচড়ে হাসপাতালের সামনের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। এ সময় তার এ ধরণের কাজ কর্ম থেকে বিরত থাকার জন্য বলেন হাসপাতালের ওটি এটেনডেনট মহিউদ্দিন খাঁন। মহিউদ্দিন খাঁন তাকে বাঁধা দেয়ায় তিনি তাকে সেখানে লাঞ্চিত করেন। এ নিয়ে হাসপাতালের অন্যান্য ষ্টাফদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে তিনি দ্রুত সেখান থেকে সরে পড়েন। ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধি সৌরভ হাসপাতাল কতর্ৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই হাসপাতাল অভ্যন্তরে যত্রতত্র প্রবেশ, রোগীদের ভাগিয়ে নেয়া, বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে দেয়ার নামে প্রতারণার মাধ্যমে রোগীদের কাছ থেকে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়ে আসছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। সৌরভ ওষুধ বিক্রয় প্রতিনিধির পাশাপাশি হাসপাতালের সামনের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকের ম্যানেজারেরও দায়িত্বে রয়েছেন। ওই ক্লিনিকে রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও সেবা দেয়ার কথা বলে হাসপাতালে আসা রোগীদের সেখানে নিয়ে যেয়ে থাকেন। হাসপাতালের ষ্টাফরা বলেন, সৌরভ মুলত একজন দালাল। ওষুধ বিক্রয় প্রতিনিধির আড়ালে তিনি মুলত রোগীদের অন্যত্র ভাগিয়ে নিয়ে তাদের সাথে প্রতারণার করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। 

হাসপাতালের ষ্টাফ মহিউদ্দিন খাঁন বলেন, সে সব সময় হাসপাতালের অভ্যন্তরে এসে আমাদের স্বাভাবিক কাজ কর্মে ব্যাঘাত ঘটিয়ে থাকে। তাকে মানা করায় আমাকে লাঞ্চিত করেছে। বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে সৌরভ হালদার বলেন, যিনি আমাকে মানা করেছেন তিনি মানা করার কে, মানা করলে হাসপাতালের টিএইচও মানা করবে। যার কারণে এ ঘটনা! তিনি আরো বলেন, আমারও একটি প্রতিষ্ঠান আছে 'সেবা ডায়গনেস্টিক সেন্টারথ যার কারণে আমি হাসপাতালের ভিতরে যাই। 

বাগেরহাট জেলা সিভিল সার্জন কেএম হুমায়ুন কবির বলেন, এ বিষয়ে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতার্ ডা: জীবিতেষ বিশ্বাসের সাথে কথা বলে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে ইউএনওকে মাস্ক উপহার

দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে ইউএনওকে মাস্ক উপহার
ইউএনওকে মাস্ক উপহার দিচ্ছেন

মোঃ শাকিল আহমেদ, বিশেষ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে মঙ্গলবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে শতাধিক নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করার জন্য মাস্ক উপহার দেওয়া হয়েছে ইউএনও আফসানা ইয়াসমিন কে ।

উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি সূত্রে জানা যায়, চৌহালীতে করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে মাস্ক ও সাবান বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে ৷ অনুষ্ঠানে উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক নুর মোহাম্মদ চৌধুরী সন্জু,সাবেক চৌহালী সরকারি কলেজের প্রভাষক আলহাজ্ব আব্দুল সালাম ফকির ,মৎস দপ্তরের ক্ষেত্র সহকারী শফিকুল ইসলাম ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির অন্যতম সদস্য সাংবাদিক রোকনুজ্জামান রকু প্রমুখ ৷

বগুড়ায় ইয়াবাসহ গ্রেফতার- ১

বগুড়ায় ইয়াবাসহ গ্রেফতার- ১
ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার
মোঃ সবুজ মিয়া বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়ায় ৫০ পিস ইয়াবাসহ বাবুল আহম্মেদ(৩৪) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সদর উপজেলার কালশিমাটি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত বাবুল ওই এলাকার মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে। মঙ্গলবার দুপুরে র‍্যাবের পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। 

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ৫০ পিস ইয়াবা, তিনটি সীমসহ দুইটি মোবাইল এবং নগদ ২ হাজার টাকাসহ বাবুলকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।


হিলিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকা নেওয়ায় এক ব্যাক্তিকে ১০দিনের কারাদন্ড

হিলিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকা নেওয়ায় এক ব্যাক্তিকে ১০দিনের কারাদন্ড

কৌশিক চৌধুরী, হিলি প্রতিনিধি: দিনাজপুরের হিলিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে গরীব অসহায় দুস্থ্য মানুষদের কাছ থেকে টাকা নেয়ার অভিযোগে রোস্তম আলী ওরফে আকালু (৪৯) নামের এক ব্যাক্তিকে ১০দিনের কারাদন্ড প্রদান দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত।সোমবার সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ নূর-এ আলম এই কারাদন্ড প্রদান করেন। দন্ডপ্রাপ্ত রোস্তম আলী হাকিমপুর উপজেলার খট্টামাধবপাড়া গ্রামের মৃত ওয়াকিল আলীর ছেলে।

হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ নূর-এ আলম জানান, উপজেলার খট্টামাধবপাড়া গ্রামের রোস্তম আলী নামের এক ব্যাক্তি আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে বিভিন্ন ব্যাক্তির নিকট থেকে অর্থ আদায় করছে। এমন অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে যায়। পরে ঘটনাটি তদন্ত করে বিষয়টির সত্যতা পাওয়ায় তাকে ১০ দিনের কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। একইসাথে বিভিন্ন ব্যাক্তির নিকট থেকে যে টাকা নেওয়া হয়েছে সেটি ফেরত প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এধরনের অভিযোগ পাওয়া গেলে তাৎক্ষনিকভাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। 

বিরামপুরে ১৬৩ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক কারবারী র্যাবের হাতে আটক

বিরামপুরে ১৬৩ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক কারবারী র্যাবের  হাতে আটক

কৌশিকচৌধুরী, হিলি প্রতিনিধি: দিনাজপুরের বিরামপুরে অভিযান চালিয়ে ১৬৩ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে দিনাজপুর র‌্যাব ১৩ এর সদস্যরা।আটককৃতরা হলো-উপজেলার দক্ষিণ দামুদরপুর গ্রামের তনছেন আলির ছেলে মাসুদ রানা (২৮) এবং মৃত আবু বক্করের ছেলে আকরাম হোসেন। তাদের বিরামপুর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এবিষয়ে র‌্যাব বাদি হয়ে বিরামপুর থানায় মাদকদ্রব্য আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে।

দিনাজপুর র‌্যাব ১৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আব্দুল্লা আল মামুন জানান, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে গোপন সংবাদের ভিত্ত্বিতে দিনাজপুর র‌্যাব-১৩ এর ক্রাইম প্রিভেনশন কম্পানি-১ এর সদস্যরা দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার শান্তিপুর এলকায় অভিযান চালায়। এসময় সেখান থেকে ১৬৩ বোতল ভারতীয় মাদকদ্রব্য ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় মাসুদ রানা ও আকরাম হোসেন নামের দুই জনকে আটক করা হয়।আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, তারা দীর্ঘদিন ধরে মাদকের ব্যবসার সাথে জড়িত। তাদের অন্যান্য মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

চৌহালীতে মাস্ক না থাকায় জরিমানা আদায়

চৌহালীতে মাস্ক না থাকায় জরিমানা আদায়

মোঃ শাকিল আহমেদ, বিশেষ প্রতিনিধি:করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে ঘরের বাইরে সবার মাস্ক পরা নিশ্চিতে সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে  ভ্রাম্যমাণ আদালত বসছে; মুখে মাস্ক না থাকলে দেওয়া হচ্ছে জেল-জরিমানা। 

কারও বাসা থেকে মাস্ক আনতে মনে নেই, কারও তা পরলে দম বন্ধ লাগে; আবার কেউ কেউ মাস্ক নিয়ে বের হলেও 'পড়ে গেছে' পথে- এমনই নানা অজুহাতে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের এই উপকরণ পরছেন না বহু মানুষ।মাস্ক মুখে না জড়িয়ে যারা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মুখোমুখি হয়েছেন, তাদের অনেককে গুণতে হয়েছে নগদ জরিমানা, সঙ্গে পেয়েছেন বিনামূল্যের মাস্কও।

মঙ্গলবার দুপুরে চৌহালী উপজেলা  প্রশাসনের একটি ভ্রাম্যমাণ আদালতের এক ঘণ্টার কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করে পাওয়া যায় এমন চিত্র।জেল-জরিমানায় সীমাবদ্ধ না থেকে নিম্ন আয়ের মানুষদের হাতে বিনামূল্যের মাস্কও তুলে দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মোছা: আফসানা ইয়াসমিন ।বাংলাদেশে করোনাভাইরাস মহামারীর 'দ্বিতীয় ঢেউ' সামলানোর পদক্ষেপের অংশ হিসাবে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার।


এরপর মারণঘাতী এই রোগ সংক্রমণ রোধে অত্যাবশ্যক মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে গত কয়েক দিন ধরে চৌহালী উপজেলার  বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে আসছে ইউএনও ।মঙ্গলবার  বেলা পৌনে ১টার দিকে চৌহালী সরকারি কলেজের  সামনে অস্থায়ী  হাট-বাজারে  চলছিল এসময়  নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফসানা ইয়াসিনের   ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা হয় ।

শুরুতে দেখা যায়, হাটে  আসা দুই যুবককে থামিয়ে মাস্ক না থাকায় ৫০  টাকা করে জরিমানা আদায় করা হয় ।মাস্ক আনতে মনে নেই' বলে ম্যাজিস্ট্রেটকে জানান বাসা  থেকে আসা একজন যুবক; অন্যজন অজুহাত না দেখিয়ে সাজা মেনে নেন।

জরিমানা পরিশোধ করলে মাস্ক পরার জন্য উৎসাহিত করে ছাড়ার পাশাপাশি তাদেরকে দেওয়া হয়েছে একটি  মাস্ক ৷এসময় ছিলেন, ভ্রাম্যমান আদালতের  পেশকার মনিরুজ্জামান , চৌহালী  থানার এসআই আব্দুর রউফ , মানবাধিকার কর্মী, সাংবাদিক রোকনুজ্জামান, দাউদ রানা , মাহমুদুল হাসান  ও আল- ইমরান মনু, শাকিল আহমেদ প্রমুখ।

মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্রের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস সচেতনতায় পানির ট্যাংক স্হাপন

মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্রের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস সচেতনতায় পানির ট্যাংক স্হাপন

হাসান হাদী  নাগরপুর(টাংগাইল)প্রতিনিধি: নাগরপুর সদরে ঐতিহ্যবাহী আইয়ূব আলী সুপার মার্কেট এর সামনে নাগরপুরের ঐতিহ্যবাহী মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্রের উদ্যোগে মহামারী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে  সচেতনতায় অংশ হিসাবে সম্মানিত জনসাধারন ও পথচারীদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সাবান দিয়ে হাত ধৌত করার পানির ট্যাংক স্থাপন করা হয়েছে। মংগলবার (০৬ এপ্রিল ২০২১ খ্রি ) সকালে নাগরপুরে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধৌত করার অস্থায়ী পানির ট্যাংক স্হাপন করা হয়।   
                                       
পানির ট্যাংক স্থাপিত স্থানে মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি রোধে করণীয় দিকনির্দেশনা মূলক বিলবোর্ড ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। এই অস্থায়ী পানির ট্যাংক স্থাপনের মাধ্যমে পথচারীসহ বিভিন্ন সাধারন মানুষ যেকোনো সময় হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সাবান  দিয়ে হাত ধৌত করতে পারবে।

এ বিষয়ে মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ম্যানেজিং ডিরেক্টর,বিশিষ্ট মিডিয়াকর্মী জ্বনাব ডা.এম.এ.মান্নান বলেন, মহামারী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আমার প্রতিষ্ঠান  নিরসনভাবে কাজ করে যাচ্ছে তারই অংশ হিসাবে নাগরপুর বাজারে  অস্থায়ী পানির ট্যাংক স্থাপন করা হয়েছে,যাতে করে সাধারন মানুষ,পথচারীগণ হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সাবান দিয়ে হাত ধৌত করতে পারে। আমরা ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের  বিভিন্ন কর্মসৃচী হাতে নিয়েছি। 

তিনি আরও বলেন,আমরা আগামী বৃহস্পতিবার সারা নাগরপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সচেতনতায় লিফলেট বিতরণ ও অসহায় দিনমুজুর ও শ্রমিকদের মাঝে সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, শুকনা খাবার বিতরণ করবো ইনশাআল্লাহ। 

এরকম কল্যানমূখী উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন নাগরপুরের সাধারন মানুষ এবং ব্যাবসায়ীবৃন্দ।হাত ধৌত করা আসা এক গাড়ী চালক বলেন,মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্রের মত নাগরপুরের সকল সামাজিক সংগঠন, পেশাজীবী সংগঠন যদি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে এ রকম কল্যানমূখী কাজে এগিয়ে আসে  তবেই করোনার মত ভয়ংকর ভাইরাস প্রতিহত করা সম্ভব।

ঝালকাঠির নদীতে অভিযান, লাখটাকার বেহুন্দী জাল জব্দ

ঝালকাঠির নদীতে অভিযান, লাখটাকার বেহুন্দী জাল জব্দ

মো. নাঈম ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ঝালকাঠির নলছিটিতে অভিযান চালিয়ে দুইটি বেহুন্দী জাল আটক করা হয়েছে। জাটকা সংরক্ষন সপ্তাহ-২০২১এর অংশ হিসেবে এ অভিযান পরিচালনা করে উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য বিভাগ।মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিভিন্ন সময় এ অভিযান পরিচালনা করে জাল আটক করে। আটককৃত জালের আনুমানিক বাজারমূল্য লক্ষাধিক টাকা।অভিযান পরিচালনা ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) মো. সাখাওয়াত হোসেন, এসময় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) রমনি কান্ত মিস্ত্রি ও সহকারি মৎস্য কর্মকর্তা দেব দুলাল সাহা উপস্থিত ছিলেন। আটককৃত জাল উপজেলা চত্বরে জনসম্মুখে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, জাটকা নিধন হয় এ ধরনের সব জাল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহ এসব জাল যারা নদীতে ফেলার চেস্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভ্রাম্যমান আদালতে ১ জনের জরিমানা

ভ্রাম্যমান আদালতে ১ জনের জরিমানা

তানভীর আহমেদ, মেহেরপুর প্রতিনিধি: করোনাভাইরাস (কোভিড–১৯) ২য় লকডাউন এ সংক্রমণ প্রতিরোধে বাড়ির বাইরে চলাচলরত অবস্থায়  মাস্ক ব্যবহার না করায় এক পথচারীর ৩ শ টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

 মেহেরপুর কোট সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জরিমানা আদায় করা হয়।ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মোহাম্মদ অনিক ইসলামের।এসময় মাস্ক না থাকায় সাইফুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তির নিকট থেকে ৩শ টকা জরিমানা আদায় করা হয়।

কয়রায় মহারাজপুরে যুব সমাজের উদ্যোগে জনসচেতনতা ও মাস্ক বিতরণ

কয়রায় মহারাজপুরে  যুব সমাজের উদ্যোগে জনসচেতনতা ও মাস্ক বিতরণ

কয়রা প্রতিনিধি: বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ দ্বিতীয় ধাপে সংক্রমণ মোকাবিলায় কয়রা উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের যুব সমাজের উদ্যোগে জনসচেতনতা মূলক ক্যাম্পেইন ও মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সকালে ইউপির নৌকা প্রার্থী আলহাজ্ব আব্দুলাহ আল মাহামুদের পক্ষে পারভেজ আহম্মেদ শরিফ এর পরিচালনায় দক্ষিণ মঠবাড়ি গুচ্ছ গ্রামে ও পূর্ব মঠবাড়ি গ্রামে জনসচেতনতা ও মাক্স বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ২ নং ইউপি ওয়ার্ড সদস্য নিরাপদ মন্ডল, রাকিবুল গাজী,  আছাদুল গাজী ও তরিকুল গাজী।

দ্বিতীয় দিনের লকডাউন চলছে গাংনিতে

দ্বিতীয় দিনের লকডাউন চলছে গাংনিতে
দ্বিতীয় দিনের লকডাউন চলছে গাংনিতে

তানভীর আহমেদ, মেহেরপুর প্রতিনিধি:করােনার মহামারীর কারণে সরকার ঘােষিত দ্বিতীয় দিনের লকডাউন চলছে মেহেরপুরের গাংনীতে ।গাংনী উপজেলা শহরের দােকান-পাট বন্ধ থাকলেও সড়কে মানুষ ও ছােট ছােট যানবাহন চলছে যথারীতি।

লকডাউনের প্রথম দিন। অর্থাৎ সােমবার সকালে গাংনী বাজারের দােকান-পাট খােলার দাবীতে ব্যবসায়ি ও দােকান কর্মচারীরা প্রতিবাদ ও বিক্ষােভ করেছিলেন। 
পরে গাংনী পৌরসভার মেয়র আহম্মেদ আলী তাদের সরকারী নির্দেশনার প্রতি শ্রদ্ধা রাখার পরামর্শ প্রদান করেন। সে থেকে ব্যবসায়ি ও কর্মচারীরা তাদের বিক্ষোভ তুলে নিয়েছে।

করোনা মোকাবেলায় রাজাপুর সদর ইউনিয়নবাসীর প্রতি যুবনেতা মাহমুদ এর আহবান

করোনা মোকাবেলায় রাজাপুর সদর ইউনিয়নবাসীর প্রতি  যুবনেতা মাহমুদ এর আহবান



ইসমাইল হোসেন,রাজাপুর উপজেলা প্রতিনিধি: প্রিয় রাজাপুর সদর ইউনিয়ন বাসী,

সমগ্র দেশ আবারো আজ করোনা ভাইরাস COVID-19 সংক্রমণের ভয়াল গ্রাসে আক্রান্ত।বাংলাদেশের সরকার ৫ এপ্রিল ২০২১ তারিখ থেকে লক ডাউন ঘোষণা করেছেন। সকলকে বাড়ীতে থাকতে বিশেষ নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য ১৮ দফা নির্দেশনা প্রদান করেছেন। এই ১৮ দফা নির্দেশনা আমাদের সকলকে অবশ্যই পালন করতে হবে।

আমি সকল ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি যারা দিনরাত নিজ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন। আমি ধন্যবাদ জানাই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীবাহিনীর সকল সদস্যবৃন্দকে। সকল গণমাধ্যমকর্মী, ব্যাংক ও অন্যান্য জরুরী সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সকল সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

প্রিয় রাজাপুর সদর ইউনিয়ন বাসী,

আপনারা অত্যন্ত ধৈর্য্যর ও সাহসের সাথে করোনা ভাইরাস জনিত উদ্ভুত কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করছেন। আপনাদের সহযোগিতার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঝুঁকি কমানোর জন্য আতঙ্কিত না হয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি।

*আপনারা সকলে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করুন।

*নিজ বাড়ির আঙিনা পরিষ্কার রাখুন।

*ব্যাবহারিত বজ্ৰ পলি ব্যাগে করে পৌরসভার নির্দিষ্টি ডাস বক্সে ফেলুন ।

*ব্যবহারিত মাস্ক ও কোনপ্রকার অবর্জনা রাস্তায় কিংবা ড্রেনে ফেলবেন না ।

*বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাবেন না, বিশেষ প্রয়োজন বের হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করবেন ।

*বাইরে থেকে ফিরে নিজেকে ও কাপড় পরিষ্কার করুন।

*রাজাপুর উপজেলা প্রশাসনের সমন্নয়ে ইতিমধ্যে কাঁচাবাজার সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের জন্য উন্মুক্ত স্থানে হাটবাজার সরিয়ে নেওয়ার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। 

*জরুরী দরকারে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখবেন।

*ব্যবসায়ী ভাইদের অনুরোধ করবো সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করুন ।

*সকলে নিয়মিত ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত পরিস্কার করি, হাঁচি, কাশির সময় মুখ ঢেকে রাখি।

প্রিয় রাজাপুর সদর ইউনিয়ন বাসী,

আপনাদের সহযোগিতা করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

আমরা জানি কাজটি সহজ নয়। দিনের পর দিন একাধারে বাড়িতে থাকা কষ্টকর। বিশেষ করে নিম্ন আয়ের মানুষ, যারা দিনে কর্ম করে চলে, দিনমজুর, শ্রমিক, রিকশাচালক সহ হতদরিদ্র জনগোষ্ঠী। তাদের জন্য অত্যন্ত কষ্টসাধ্য। তারপরও নিজের, নিজের পরিবার ও সকলের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার বিষয় নিশ্চিত করার জন্য আপনারা এই কষ্ট করছেন।

এই সংকট কালে নিম্ন আয়ের মানুষের দুর্ভোগ কমানোর লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ঝালকাঠী-১আসনের স্থানীয় মাননীয় সংসদ সদস্য জননেতা আলহাজ্ব বজলুল হক হারুন মহোদয়ের প্রত্যক্ষ দিক নির্দেশনায় কার্যক্রম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশে হতদরিদ্র দিনমজুর, কৃষক, শ্রমিক, বিধবা নারী, হিজড়া সহ নিম্ন আয়ের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে স্বল্পমূল্যে খাদ্যদ্রব্যসহায়তা প্রদানের নির্দেশনা দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঝালকাঠি -১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জননেতা আলহাজ্ব বজলুল হক হারুন মহোদয়ের নির্দেশনায় এ বিষয়ে ইতিমধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। সেই সাথে ১০ টাকা কেজি চাল বিতরণ কার্যক্রম ও টিসিবির মাধ্যমে স্বল্প মূল্যে নিত্য প্রয়োজীয় পণ্য সামগ্রী সরবরাহ করা হচ্ছে। অনেক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গ নিজ উদ্যোগে হতদরিদ্র মানুষকে সহযোগিতা প্রদান করছেন।

এই সংকটময় সময়ে আমি শহরের সকল বিত্তবান মানুষকে হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর প্রতি তাদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহবান জানাচ্ছি এবং আমি গতবারের ন্যায় এবারও আমি আমার সাধ্যমত সহোযোগিতা করার চেষ্টা চালিয়ে যাবো। ইনশাআল্লাহ। 

প্রিয় রাজাপুর সদর ইউনিয়ন বাসী,

আসুন আমরা সকলে ধৈর্যের সাথে এই সংকট মোকাবেলা করি। আমাদের সকলের দায়িত্বশীল আচরণ এই সংকট থেকে উত্তরনের পথ সহজ করবে। আমরা অবশ্যই এই সংক্রমণ থেকে মুক্ত হবো ইনশাল্লাহ।

আসুন আমরা সকলে সচেতন হই ও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সক্রিয় ভূমিকা রাখি। নিজেরা সুরক্ষিত থাকি, পরিবার পরিজন ও প্রতিবেশীদের সুরক্ষিত রাখি।

রাজাপুর -কাঠালিয়ার মানবিক নেতা জননেতা আলহাজ্ব বজলুল হক হারুন এমপি মহোদয়ের আদেশক্রমে ও দিক নির্দেশনায় আমি কথা দিচ্ছি এই দুঃসময়ে আমার রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠন এবং ব্যক্তিগতভাবে আমি মোঃমাহমুদুল হাসান মাহমুদ এই দুঃসময়ে সবটুকু দিয়ে পাশে থাকার চেষ্টা করবো।

মহান আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।

মোঃমাহমুদুল হাসান মাহমুদ 
সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, রাজাপুর উপজেলা ছাত্রলীগ,ঝালকাঠি। 
সাবেক সাধারণ সম্পাদক, শহর ছাত্রলীগ,রাজাপুর,ঝালকাঠি।

টেবিল টেনিস নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই, দেশসেরা হতে চাই

টেবিল টেনিস নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই, দেশসেরা হতে চাই

জবি প্রতিনিধি: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত 'বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমস—২০২০' এর টেবল টেনিসের ন্যাশনাল র‍্যাংকিং এ ১৬ তম অবস্থানে থেকে আসর শেষ করা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী তামান্না সুলতানাকে খেলাধুলা নিয়ে তার ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, "টেবিল টেনিস নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই, দেশসেরা হতে চাই।"মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক গৌতম কুমার দাস তামান্নার এ অবস্থানের তথ্য নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, তামান্না সুলতানা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ১৪ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমসে বাংলাদেশ ঢাকা জেলার হয়ে খেলেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তামান্না সুলতানা। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ গেমসের এবারের আসরে ২ এপ্রিল শুরু হওয়া টেবল টেনিস প্রতিযোগীতাটি শেষ হয় ৫ এপ্রিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পোর্টস ক্লাব সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরা ছাত্রী খেলোয়াড়দের মধ্যে তিনি অন্যতম। তিনি ছাত্রীদের টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন ও ভলিবলে নিয়মিত মুখ। ব্যাডমিন্টন খেলায় জেলা পর্যায়ে কয়েকবার অংশগ্রহণ করেন ও কুমিল্লা ডিভিশনে একবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। আন্তঃ কলেজ হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতায় দলের স্টাইকার ছিলেন ও চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জিতেন। বঙ্গবন্ধু আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৯ এ তিনি টেবিল টেনিসে সিলভার পদক অর্জন করেন। বিভিন্ন ক্লাবের পাশাপাশি তিনি ন্যাশনাল র‍্যাংকিংয়ে টেবিল টেনিস খেলেন। তিনি বেশ কয়েকবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাডমিন্টন ও টেবিল টেনিসে প্রথম হয়েছেন। ইনডোর গেমস-২০১৯ এ সেরা ছাত্রী খেলোয়াড়ের সম্মাননা পান ও আউটডোরে গোলক নিক্ষেপে দ্বিতীয় ও বর্শা নিক্ষেপে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন।

অনুভূতি ব্যক্ত করে তামান্না বলেন, "সিলেকশন হয়েছে এতেই আমি অনেক খুশি। সামনে আরো ভালো কিছু করার চেষ্টা করবো। ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। ভালো গাইডলাইন পেলে আরো ভালো করতে পারবো। পড়াশোনা ও খেলাধুলা দুটোই একসাথে চালিয়ে যেতে চাই। আপনার সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কাম্য।"

দিনাজপুরে গড়ে উঠেছে পরিবেশবান্ধব ব্রিকস ইন্ড্রাস্ট্রি

দিনাজপুরে গড়ে উঠেছে পরিবেশবান্ধব ব্রিকস ইন্ড্রাস্ট্রি
দিনাজপুরে গড়ে উঠেছে পরিবেশবান্ধব ব্রিকস ইন্ড্রাস্ট্রি

মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ
॥-জার্মান প্রযুক্তিতে দিনাজপুর সদরের লালবাগ বাধ এলাকায় নদী ও কৃষি জমির পাশেই গড়ে তোলা হয়েছে পাথর গুড়া ও সিমেন্ট দিয়ে অত্যাধুনিক ইট তৈরির কারখানা।আজ  সরেজমিনে দেখা যায়, জ্বালানি ও মাটির ব্যবহার ছাড়াই ইট তৈরিতে ব্যবহার করা হচ্ছে পাথর, নুড়ি পাথর, পাথরের গুড়া, সিলেকশন সেন্ড, সিমেন্টসহ বেশকিছু উপকরণ।শ্রমিকরা কারখানার পাশে স্তুব করা পাথর, সিমেন্ট, সিলেকশন সেন্ড ট্রলিতে এনে হপারে ঢেলে দেয়। পরে মিকচার মেশিনে অন্যান্য উপকরণ মিশ্রিত করে কনভেয়ার বেল্টের মাধ্যমে ভাইব্রো মাল্টি ক্যাভিটি মোল্ডিং মেশিনের মাধ্যমে তৈরি করা হয় ইট।

মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যবধানে সারি সারি ভাবে মেশিন থেকে বেড়িয়ে আসে পরিবেশবান্ধব ব্রিকস। দৈনিক ২০ হাজার ব্রিকস,  শ্রমিকরা কারখানার পাশেই সংরক্ষণ করেন বিক্রির জন্য। এ অত্যাধুনিক ইট ক্রয়ে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসছেন অনেকে। অন্যদিকে পরিবেশ দূষণমুক্ত এ কারখানায় কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হওয়ায় খুশি শ্রমিকরা।

গ্রীন বেরী ব্রিক্স ইন্ড্রাস্ট্রি লিমিটেডের পরিচালক গালিব জানান, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় জ্বালানি, মাটির ব্যবহার ছাড়াই তৈরি করা হচ্ছে অত্যাধুনিক ইট। কারখানাটিতে এখন অর্ধশত মানুষ কাজ করছে। সরকারি নির্দেশনা মানা হলেই এ ধরনের উদ্যোগে এগিয়ে আসবে অনেকে। রক্ষা হবে উর্বর জমি ও বায়ু মন্ডলের দূষণ। এছাড়াও এই ব্রিকস দিয়ে বাড়ী নির্মান করলে ৪০% পর্যন্ত নির্মান খরচ কমানো সম্ভব। এ ছাড়া তিনি জানান, ২ শিফটে ২০ জন করে কাজ করে শ্রমিকরা। এ ছাড়া ৪ জন ইঞ্জিনিয়ার রয়েছে। এই অটোমেটিক মেশিনের মাধ্যমে উন্নত বিশ্বে যা তৈরি হয় এখানেই তা তৈরি করা যায়।


মানা হচ্ছে না লকডাউন ঝালকাঠিতে ঢিলেঢালা লকডাউন

মানা হচ্ছে না লকডাউন ঝালকাঠিতে ঢিলেঢালা লকডাউন

মো. নাঈম ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ঝালকাঠিতে সকাল থেকে ঢিলেঢালাভাবে লকডাউন চলছে। শহরের বেশিরভাগ দোকান পাট বন্ধ রয়েছে। তবে বাজারে মানুষের ভিড় লেগে আছে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই ঘর থেকে বের হচ্ছে জনসাধারণ। শহরের বিভিন্ন মোড়ে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। 

গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। বাসস্ট্যান্ড থেকে আভ্যন্তরীণ ৬ রুটসহ দূরপাল্লার কোন রুটেই বাস চলছে না।লকডাউনের প্রথম দিনে ঝালকাঠিতে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও সিএনজি, আটোরিক্সা সহ অন্যান্য পরিবহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে দেখা যাচ্ছে প্রয়োজনে কিম্বা অপ্রয়োজনে রাস্তা ঘাটে মানুষের অবাধ চলাচল আগের মতই।লকডাউনের মধ্যেও মাস্ক ছাড়া জনসাধারণ ঘোরাফেরা করছেন। শুধু ঝালকাঠি শহরই নয়, একই অবস্থা নলছিটি, রাজাপুর ও কাঁঠালিয়া উপজেলাতে। ঢিলেঢালাভাবে লকডাউন চলছে উপজেলাগুলোতে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সরকার ১১ টি বিধি নিষেধ দিয়ে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষনা করলেও ঝালকাঠিতে তা মানা হচ্ছে না। 

কাজের সন্ধানে বের হয়ে আসছে খেটে খাওয়া মানুষ। অনেকের মুখে দেখা যায়নি মাস্ক, নেই সামাজিক দূরত্ব, খোলা রাখা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের দোকান পাট। জেলার বিভিন্ন জায়গায় সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সকাল থেকেই কাজ করছে পুলিশ প্রশাসন। এদিকে মাস্ক না পড়ে উস্কানীমূলক কথা বলায় রাজাপুরে মো. শওকত হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোক্তার হোসেন এ জরিমানা করেন। শওকত হোসেন উপজেলার পুটিয়াখালী গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে। এদিকে জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী জানান, করোনা ভাইরাসের সংক্রামন রোধে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সচেতনকা মূলক কার্যক্রম, মাস্ক বিতরন অব্যাহত রয়েছে। প্রয়োজেনে বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হচ্ছে।

নলছিটিতে সূর্যমুখির হাসিতে কৃষকের মুখে হাসি

নলছিটিতে সূর্যমুখির হাসিতে কৃষকের মুখে হাসি
নলছিটিতে সূর্যমুখির হাসিতে কৃষকের মুখে হাসি

মোঃ নাঈম, ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ঝালকাঠির
 নলছিটি উপজেলায় সূর্যমুখীর হাসিতে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে এ যেন সবুজের মাঝে হলুদের সমাহার। যতদূর চোখ যায়, সূর্যের দিকে মুখ করে হাসছে সূর্যমুখী। আর এমন মনোরম দৃশ্য দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছেন দর্শনার্থীরা। এরই মধ্যে সূর্যমুখীর হাসিতে ভাল ফলনের স্বপ্ন দেখছে কৃষকরা।

নলছিটি উপজেলার সারদল গ্রামের কৃষক মোঃ হেলাল তালুকদার জানান তিনি ৩৩ শতাংশ জমিতে এ সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেন ৷ তার জমিতে হাসি ফুটিয়েছে সূর্যমুখী ৷ তা দেখতে শহর থেকে প্রতিদিন অনেক দর্শনার্থীরাই সেখানে ভীর জমায় ৷

তিনি আরও বলেন আমি কৃষি অফিসের পরামর্শে ৩৩ শতাংশ জমিতে সূর্যমুখীর চাষ করি। বর্তমানে সুর্যমুখী ক্ষেতে ভাল ফুল আসতে শুরু করেছে। এমন পরিবেশে সূর্যমুখী ফুল অনেকের দৃষ্টি কেড়েছে। অনেকেই সূর্যমুখী ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করছেন। আবার অনেকেই ক্ষেতে ছবি তুলে ফেসবুকে দিচ্ছেন। এগুলো আমার কাছে ভালোই লাগছে ৷ তবে কিছু কিছু লোক ক্ষেতের ফুল ছিড়ে নষ্ট করছে যার কারনে আমাদের সবসময় ক্ষেতের আশেপাশে থাকতে হচ্ছে ৷

তিনি দর্শনার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, "ফুলের সৌন্দর্য্য উপভোগের নামে আমাদের গাছের ফুল ছিড়ে নষ্ট করবেন না ৷ এতে আমাদের অনেক ক্ষতি হয় ৷ এ সূর্যমুখী চাষে আমরা যদি সাফল্য না পাই, লাভ না হয়ে উল্টো ক্ষতি হয়ে যায় তাহলে কৃষকরা এ তেল জাতীয় ফসল চাষে আগ্রহ হারাবেন।

এবিষয়ে নলছিটি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলি এ প্রতিবেদককে জানান এবছর উপজেলায় সূর্যমুখির বাম্পার ফলন হয়েছে। উপজেলায় সূর্যমুখি চাষের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছিলো ২৫ হেক্টর। কিন্তু সূর্যমুখির ফুলের চাষ লাভ জনক হওয়ায় তা লক্ষমাত্রার আড়াইগুন ছাড়িয়ে গেছে। উপজেলায় ১০ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌর সভায় মোট ৭৬ হেক্টর জমিতে সূর্যমুখির ফুলের চাষ হয়েছে। সরকারের ভর্তুকি, কৃষি বিভাগের নিবিড় তত্তাবধানে ও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবছর সূর্যমুখির বাম্পার ফলন হয়েছে।

সূর্যমুখির তৈলে কোলেস্ট্রোল কম থাকায় দিন দিন বাজারে এ তেলের চাহিদা ব্যপক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে।
সূর্যমুখির খৈলে উচ্চ মানের পুষ্টিগুন থাকায় পশুপাখি মাছসহ বিভিন্ন গবাদিপশু-পাখির খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এ গাছের কান্ড জালানী কাঠ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে এছাড়াও জমিতে সূর্যমুখি চাষের মাধ্যমে শশ্যাবর্তন'র ফলে মাটির উর্বতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সব মিলিয়ে উপজেলায় সূর্যমুখির চাষের সম্ভবনা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

তবে এ তেল বিজের স্থানীয় ভাবে ব্যবহার ও বাজার ব্যবস্থা আশানুরুপ ভাবে সৃষ্টি না হওয়ায় কিছুটা বিপাকে পরেছে কৃষকরা। উপজেলায় গুরুত্বপূর্ণ স্থান বিবেচনা করে সরকারি মিল স্থাপনসহ সার্বিক উন্নয়নে এগিয়ে আসতে সচেতন মহল সরকারের আশু দৃষ্টি কামনা করেছন।

টাঙ্গাইলে সকল মার্কেট খুলে দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ

টাঙ্গাইলে সকল মার্কেট খুলে দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ

টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:টাঙ্গাইলে মার্কেট খুলে দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছে ব্যবসায়ীরা।আজ মংগলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের নিউ সমবায় মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটের সামনে তারা এই কর্মসূচি পালন করে।
ঘণ্টাব্যাপী এ বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যোগ দেন হাজারো ব্যবসায়ী। পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, জেলা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খান আহমেদ শুভ, সদর থানার ওসি মীর মোশাররফ হোসেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করলে তারা বিক্ষোভ তুলে নেন। এ নিয়ে ব্যবসায়ী নেতারা জেলা প্রশাসকের কাছে তাদের দাবি তুলে ধরেন।

এবিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি বলেন, ব্যবসায়ীদের দাবি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জানানো হবে। বিষয়টি নিয়ে আগামীকাল সকাল ১১টায় পুলিশ সুপার, ব্যবসায়ী নেতা ও প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক হবে। সেখানেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে

প্রযোজনা থেকে পরিচালনায় মনির আহমেদ খান

প্রযোজনা থেকে পরিচালনায় মনির আহমেদ খান

যাযাবর পলাশঃ এবার পরিচালক হিসেবে নিজের নাম লিখলেন স্বনামধন্য প্রযোজক মনির আহমেদ খান। সম্প্রতি তিনি তার পরিচালনায় একটি বিশেষ নাটক নির্মান করেছেন। নতুন এই নাটকের নাম দেয়া হয়েছে 'ঠেলার নাম বাবাজি'। ফারুক আহমেদ রানার গল্প রচনায় চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন মনির আহমেদ খান। 
ইতিমধ্যেই 'ঠেলার নাম বাবাজি' শিরোনামের নতুন এই নাটকের চিত্রধারণ এর কাজ শেষ হয়েছে। চলছে সম্পাদনার কাজ। বিভিন্ন মনোরম লোকেশনে চিত্রায়িত হয়েছে নতুন এই নাটকের শ্যুটিং। 

মনির আহমেদ খান পরিচালিত নতুন এই নাটকটিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন তানিম খন্দকার, জেরিন তাসনিম অন্তরা, হোসাইন সাইদি, আনোয়ার হোসেন, সাহেলা আকতার, নাজিম উদ্দিন সহ আরও অনেকে। নাটকের চিত্রধারণে জাহেদ নান্নু। সহকারী পরিচালক হিসেবে ছিলেন রতন রহমান। 
আসছে ঈদ উপলক্ষ্যে চ্যানেল নাইন এ ঈদের সাতদিনব্যাপী ঈদ আয়োজনে বিশেষ নাটক হিসেবে 'ঠেলার নাম বাবাজি' নাটকটি প্রচারিত হবে বলে জানালেন প্রযোজক ও নির্মাতা মনির আহমেদ খান। এছাড়া টিভিতে প্রচারের পর তার নিজস্ব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শেকড় মাল্টিমিডিয়া এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে থেকেও 'ঠেলার নাম বাবাজি' নাটকটি মুক্তি পাবে বলে জানালেন তিনি।
'ঠেলার নাম বাবাজি' নাটকটি প্রসঙ্গে মনির আহমেদ খান বলেন, খুব যত্ন নিয়ে কাজটি করার চেষ্টা করেছি। গল্পটি হাস্যরসাত্মক হলেও এই নাটক দিয়ে সমাজকে এবং বিশেষ করে তরুণদের খুব সুন্দর একটি বার্তা দেয়ার চেষ্টা করেছি। যেটা দর্শক দেখলেই বুঝবে। আমার টিমের সবাই কে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, সবাই আমাকে খুব ভালো ভাবে সহযোগিতা করেছে।

মোংলায় ঢিলেঢালা লকডাউন, লকডাউনে দোকানপাট খোলা রাখার দাবী ব্যবসায়ীদের

মোংলায় ঢিলেঢালা লকডাউন, লকডাউনে দোকানপাট খোলা রাখার দাবী ব্যবসায়ীদের

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা: মোংলায় ঢিলেঢালা ভাবে চলছে লকডাউন। মঙ্গলবার সকাল থেকে পৌর শহরের সকল ধরণের দোকানপাট আংশিক খোলা রেখেছে ব্যবসায়ীরা। এদিকে সকাল ৮ থেকে বিকেল ৪টা কিংবা রাত ৮ টা পর্যন্ত থেকে সকল ধরণের দোকানপাট পুরোপুরো খোলা রাখার দাবীতে শহরে লকডাউন বিরোধী মৌন প্রতিবাদ জানিয়েছেন তারা। এরপর মোংলা বন্দর বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দসহ শতাধিক ব্যবসায়ী তাদের এ দাবী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কমলেশ মজুমদারের কাছে উত্থাপন । মোংলা বন্দর বণিক সমিতি সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান খোকন বলেন, অন্যান্য দোকানপাটের (মুদি, কাঁচা বাজার) মত আমাদের সকল দোকানপাট স্বাস্থ বিধি মেনে খোলা রাখার দাবী জানাচ্ছি। তবে তাদের এ দাবীর বিষয়টি প্রত্যাখান করে সরকার ঘোষিত বিধি নিষেধ মানার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবাণ জানিয়েছেন। 
এদিকে লকডাউন কার্যকরে প্রশাসনের কর্তাদের মাঠ পর্যায়ে তেমন কোন তদারকী চোখে পড়েনি। 

মেহেরপুর জেলা পুলিশের উদ্যোগে করোনা সচেতনতা মুলক নানান কমসুচি

মেহেরপুর জেলা পুলিশের উদ্যোগে করোনা সচেতনতা মুলক নানান কমসুচি

তানভীর আহমেদ, মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধি : মাস্ক পরার অভ্যেস করুন,করোনামুক্ত বাংলাদেশ গড়ুণ" এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মেহেরপুর জেলা পুলিশের উদ্যোগে সাধারণ মানুষের মধ্যে শতভাগ মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতকরণ ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করেন।
 জনসাধারণের মাঝে মাস্ক ও সচেতনতামূলক স্টিকার বিতরন করেন।আজ মেহেরপুর পুলিশের একটি দল মেহেরপুর শহরের কোট মোড়, হোটেল বাজার মোড় এবং পুরাতন বাস স্ট্যান্ড এলাকায় জনসচেতনতা মূলক প্রচারণা চালান। 

এসময় অযাথা ঘরের বাইরে বের না হওয়ার জন্য আহ্বান করেন। একইসাথে সকলকে মাস্ক ব্যবহার করার জন্যেও  আহ্বান জানানো হয়।

গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করল দুই সন্তানের জননী

গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করল  দুই সন্তানের জননী

তানভীর আহমেদ, মেহেরপুর প্রতিনিধি: মেহেরপুর,মুজিবনগরে মোনাখালি গ্রামের স্মৃতি কর্মকার (৩০) নামের (হিন্দু সম্প্রদায়ের) দুই সন্তানের জননী গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

 গতকাল রাতে  নিজ ঘরের ফ্যান এর সাথে ওড়না পেচিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে সে আত্মহত্যা করে। আত্মহত্যা কারি মুজিবনগর উপজেলার মোনাখালী ইউনিয়নের মোনাখালী গ্রামের ৩ নং ওয়ার্ড দক্ষিন পাড়ার বিপুুল কর্মকারের স্ত্রী। স্থানীয়রা জানান, বিপুল নিজ গ্রামে কামারের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। তাদের ভিতরে সংসারিক অশান্তি খুব একটা ছিল না,তবে কি কারনে সে আত্মহত্যা করল তা তাদের জানা নেই।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে স্মৃতি কর্মকার ও তার স্বামী বিপুল কর্মকার এবং তাদের দুই সন্তান বিল্টু( ৭) ও মেয়ে জ্যোতি (৪) কে নিয়ে রাতের খাবার খেয়ে এক ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে, পরে রাত পাশের ঘরের ফ্যানের সাথে ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে।

লোহাগড়া বাজার থেকে ১৫০ কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন সহ আটক দুইজন

লোহাগড়া বাজার থেকে ১৫০ কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন সহ আটক দুইজন

মোঃআজিজুর বিশ্বাস,স্টাফ রিপোর্টার নড়াইলঃনড়াইল জেলার লোহাগড়া থানা পুলিশের অভিযানে নিষিদ্ধ ১৫০কেজি পলিথিনসহ  দুই জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার ৬/এপ্রিল বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে লোহাগড়া বাজারের গরুহাটা থেকে এএস আই বাচ্চু,ও সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে মাগুরা জেলার মোহাম্মদপুর থানার দুঘুরদিয়া গ্রামের সিদ্দিক বিশ্বাসের ছেলে রমজান বিশ্বাস, এবং একই থানার নাইলেরডাংগা গ্রামের মাজেদুলের ছেলে সোনারুল কে ১৫০ কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন সহ আটক করেছে। 

আটককৃতরা জানান, তারা মাগুরা জেলার নহাটা এলাকার মেসার্স খান এন্টারপ্রাইজ এর  কর্মচারী যার মালিক সাজ্জাদ খাঁন, ইয়াদ আলি খাঁন, ও সুজাদ খাঁন,তারা এই প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী। মালিকের অডারে লোহাগাড়ায় পলিথিন দিতে এসেছিলো।লোহাগড়া থানার তদন্ত ওসি মো:মাহমুদুর রহমান বলেন, সরকারি বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করে আটককৃতদের আদালতে প্রেরণ করা হবে। 

হিলিতে করোনার সংক্রামন প্রতিরোধে জনগনের মাঝে ফ্রি মাস্ক বিতরন

হিলিতে করোনার সংক্রামন প্রতিরোধে জনগনের মাঝে ফ্রি মাস্ক বিতরন

কৌশিকচৌধুরী, হিলি প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের হিলিতে দ্বিতীয় ধাপের করোনা ভাইরাসের সংক্রামন প্রতিরোধে জনগনের মাঝে বিনামুল্যে মাস্ক বিতরন করেছে ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতি।

বাংলাহিলি ওষধ ব্যসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে আজ মঙ্গলবার সকালে ১০ টায় হিলি বাজারে মাস্কবিহীনভাবে আগত সাধারন মানুষজনের মাঝে এসব মাস্ক বিতরন করেন তারা। এসময় তারা সকলকে বাড়ির বাহিরে বের হলে মাস্ক পরতে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান। সমিতির পক্ষ থেকে বিনামুল্যে ৫ হাজার মাস্ক বিতরন করা হয়। 

এসময় সেখানে বাংলাহিলি ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক মৃনাল কান্তি সরকার, সদস্য আনছার আলী, সেকেন্দার আলীসহ সমিতির অনেক সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

কালিয়ার পল্লীতে দুর্বৃত্তের গুলিতে নজরুল নামে এক শুটার আহত হয়েছে

কালিয়ার পল্লীতে দুর্বৃত্তের গুলিতে নজরুল নামে এক শুটার আহত হয়েছে

সোঃ আজিজুর  বিশ্বাস,স্টাফ রিপোর্টার নড়ইলঃ নড়াইলে দুর্বৃত্তের গুলিতে নজরুল ইসলাম খান নামে এক শুটার আহত হয়েছেন ।সোমবার (৫এপ্রিল) রাত  ৮ টার দিকে কালিয়া উপজেলার চন্দ্রপুর গ্রামে নিজ বসত বাড়ির অদূরেই নজরুলকে গুলি করে পালিয়ে যায়। চোয়ালে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে প্রথমে নড়াইল সদর হাসপাতালে পরে সেখান থেকে উচ্চতর চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেলে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। ঘটনা অনুসন্ধানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। 


পুলিশ ও আহতের স্বজনরা জানায়, রাত ৮টার দিকে নজরুল নিজ বাড়ি থেকে পার্শ্ববর্তী চাঁচুড়ি বাজারে যাবার পথে এই হামলার শিকার হন। দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ করে পর পর দু'টি গুলি ছুড়লে একটি লক্ষভ্রষ্ট হয়, অন্যটি তার বাম চোয়ালে বিদ্ধ হলে তিনি চিৎকার দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তার আর্ত চিৎকারে আাশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে হামলাকারিরা পালিয়ে যায়।

 এ অবস্থায় নজরুলকে উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতালে নেয়া হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উচ্চতর চিকিৎসার জন্য তাকে খুলনা মেডিক্যেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। গুলিবিদ্ধ নজরুল পেশায় গবাদিপশু ও মাছের খামারি। এ ছাড়াও তিনি নড়াইল রাইফেলস ক্লাবের সদস্য এবং সৌখিন শুটার। বিভিন্ন সময় জাতীয়সহ বিভিন্ন পর্যায়ে অনুষ্ঠিত শুটিং প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার রেকর্ড রয়েছে। তিনি কেন হামলার শিকার হলেন পুলিশ খতিয়ে দেখছে।

শুটিংয়ে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন এমপি শিবলী সাদিক,আনন্দিত এলাকার মানুষ

শুটিংয়ে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন এমপি শিবলী সাদিক,আনন্দিত  এলাকার মানুষ

কৌশিকচৌধুরী, হিলি প্রতিনিধিঃ 
বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ) আয়োজিত বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমসের শুটিং ইভেন্টে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য মো. শিবলী সাদিক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এই খেলার আয়োজন করে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)। 

এমপি শিবলী সাদিকের এই সফলতায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তার নির্বাচনী এলাকা দিনাজপুর ৬ আসন তথা হাকিমপুর, বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, ঘোড়াঘাট উপজেলার জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের নেতৃবৃন্দ।বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি) অনুষ্ঠিত শুটিংয়ের স্কিট প্রতিযোগিতায় রোববার ৭৪ স্কোর করে ব্রোঞ্জ পদক জিতে নেন দিনাজপুর রাইফেল ক্লাবের এই শুটার। 

সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক বলেন, বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গন ঘিরে যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের চেষ্টার সবচেয়ে বড় মঞ্চ বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমস। এই গেমস অর্থবহ হলেই জাতির পিতার প্রতি সত্যিকার অর্থে সম্মান প্রদর্শন সম্ভব হবে। বঙ্গবন্ধু বিশ্বাস করতেন, তরুণরা পারবে এ দেশের ক্রীড়াঙ্গনের চেহারা পাল্টে দিতে, পারবে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনকে আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গনে পরিচিত করতে।

দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি শিবলী সাদিক ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করায় অভিনন্দন জানিয়েছেন- বিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, পৌর মেয়র অধ্যক্ষ আক্কাস আলী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিমল কুমার সরকার, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মিজানুর রহমান মণ্ডল, হাকিমপুর উপজেলা চেয়ারম্যান হারুন উর রশিদ, পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত, হিলি টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি হালিম আল রাজিসহ সকল সদস্য, হাকিমপুর প্রেসক্লাব সভাপতি গোলাম মোস্তাফিজার রহমান মিলনসহ সকাল সদস্য, দিনাজপুর সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সভাপতি আকরাম হোসেনসহ অনেকে।

সাতক্ষীরা'র দরগাহপুরের সদাহাস্যজ্বল জুলফিকার হায়দার এর সান্নিধ্যে একদিন

সাতক্ষীরা'র দরগাহপুরের সদাহাস্যজ্বল জুলফিকার হায়দার এর সান্নিধ্যে একদিন

।।আজহারুল ইসলাম সাদী।।সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি উপজেলার ঔতিহ্যবাহী দরগাহপুর গ্রামের কৃতি সন্তান সকলের প্রিয় সদাহাস্যজ্বল মানবিক মানুষ জুলফিকার হায়দার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে 
খুলনা আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতাল থেকে  প্রথমিকভাবে চিকিৎসা নেয়ার পরবর্তীতে, তার হার্টের রিং পরানো জরুরি হয়ে পড়লে ঢাকা থেকে তার হার্টে সফলভাবে রিং পরানো হয়।

সেখান থেকে সফল অস্ত্র পাচার শেষে তিনি সাতক্ষীরা শহরে তার কন্যার বাসায় কয়েকদিন বিশ্রামে আছেন এ সংবাদ পাওয়ায় ছুটে যাই প্রিয় এই মানুষটা সান্নিধ্য পাওয়ার জন্য। ফেসবুক মাধ্যমে তার সাথে আমার কয়েক বছর পরিচয়, তার আলাপ ব্যবহারে যা জেনেছি তা হলো তিনি একজন মুক্ত মনের স্বাধীনচেতা মানুষ। 

তিনি জীবনের অধিকাংশ সময় চাকরির সুবাদে জেলার বাহিরে অবস্থান করছেন।সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি উপজেলার ঐতিহ্যবাহী দরগাপুর গ্রামে জন্ম নেয়া সদাহাস্যজ্বল এই মানুষটার সাথে পরিচয় হয় দরগাহপুর গ্রামের আরেক কাজ পাগল ধর্মভীরু কবি শেখ আক্তারুজ্জামান এর মাধ্যমে। প্রিয় মানুষ জুলফিকার হায়দার বর্তমানে  দরগাহপুর নিজ বাসায় অবস্থান করছেন,আমি তার শরীরের উন্নতি কামনা করি।