প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১০ জঙ্গির ডেথ রেফারেন্স

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১০ জঙ্গির ডেথ রেফারেন্স

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বোমা পুঁতে হত্যাচেষ্টার মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১০ জঙ্গির ডেথরেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) ও দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে আসামিদের করা আপিলের ওপর ১৭ ফেব্রুয়ারি রায়ের তারিখ ধার্য করেছেন হাইকোর্ট।

শুনানি শেষে বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ সোমবার রায়ের এই তারিখ ঠিক করেন। এর আগে ডেথরেফারেন্স ও আসামির আপিলের ওপর গত বছরের সেপ্টেম্বর শুনানি শুরু হয়।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি  জেনারেল মো. বশির উল্লাহ শুনানি করেন। চার আসামির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোহম্মদ আহসান। পলাতক আসামিদের পক্ষে রাষ্ট্র নিযুক্ত হিসেবে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী অমূল্য কুমার সরকার।

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. বশির উল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ থেকে বিচারিক আদালতের দেওয়া রায় ও দণ্ড বহালের আরজি জানানো হয়েছে। শুনানি শেষে আদালত ১৭ ফেব্রুয়ারি রায়ের জন্য দিন ধার্য করেছেন। ভাষার মাস বলে বাংলা ভাষায় রায় দেবেন বলেছেন আদালত।

ওই মামলায় ২০১৭ সালের ২০ আগস্ট বিচারিক আদালত রায় দেন। রায়ে ১০ জনকে 'ফায়ারিং স্কোয়াডে' (গুলি করে) মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে বলা হয়ে। এ ছাড়া ১ জনকে যাবজ্জীবন ও ৩ জনকে ১৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই রায়ের পর ডেথ রেফারেন্সের জন্য রায়সহ নথিপত্র ওই বছরের ২৭ আগস্ট হাইকোর্টে পৌঁছায়। পরদিন সংশ্লিষ্ট শাখা এসব ডেথ রেফারেন্স হিসেবে নথিভুক্ত করে। শুনানির পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে পেপারবুক (মামলার বৃত্তান্ত) তৈরি করা হয়। অন্যদিকে রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা তিনটি আপিল ও সাতটি জেল আপিল করেন।

প্রসঙ্গত, ২০০০ সালের ২২ জুলাই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় শেখ লুৎফর রহমান সরকারি আদর্শ কলেজমাঠ প্রাঙ্গণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভার প্যান্ডেল তৈরির সময় শক্তিশালী একটি বোমা দেখা যায়। সেনাবাহিনীর একটি দল ৭৬ কেজি ওজনের ওই বোমা উদ্ধার করে। পরদিন ২৩ জুলাই ৪০ কেজি ওজনের আরেকটি বোমা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওই দিনই কোটালীপাড়া থানার পুলিশ হত্যাচেষ্টা এবং বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা করে। ২০১০ সালে গোপালগঞ্জ আদালত থেকে মামলা দুটি ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন ওয়াসিম আখতার ওরফে তারেক হোসেন ওরফে মারফত আলী, রাশেদ ড্রাইভার ওরফে আবুল কালাম ওরফে রাশেদুজ্জামান খান ওরফে শিমন খান, ইউসুফ ওরফে মোসহাব মোড়ল ওরফে আবু মুসা হারুন, শেখ ফরিদ ওরফে মাওলানা শওকত ওসমান, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, মাওলানা আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মুফতি শফিকুর রহমান, মুফতি আবদুল হাই ও মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে মুফতি রউফ ওরফে আবদুর রাজ্জাক ওরফে আবু ওমর।

আর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পেয়েছেন মেহেদী হাসান ওরফে আবদুল ওয়াদুদ। ১৪ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড পেয়েছেন আনিসুল ইসলাম ওরফে আনিস, মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমান ও সরওয়ার হোসেন মিয়া।
তথ্যের উৎস: প্রথম আলো

লাকসামে কামড্ডা বাজার কেন্দ্রীয় মসজিদে ৬ষ্ঠ হাজী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়

লাকসামে কামড্ডা বাজার কেন্দ্রীয় মসজিদে ৬ষ্ঠ হাজী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়

লাকসাম প্রতিনিধিঃলাকসাম উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের ঐতিহাসিক কামড্ডা বাজার  কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে (১লা ফ্রেবুয়ারি) রোজ সোমবার  দিনব্যাপী  ৬ষ্ঠ হাজী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

  আউশপাড়া দরবার শরীফের পীর আলহাজ্ব মাওলানা আবু তাহের এর সভাপতিত্বে এবং হাজী সম্মেলন পরিচালনা পর্ষদের সদস্য আলহাজ্ব এইচ,এম মোশারফ হোসেন কাঞ্চনের সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন -কুমিল্লা জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ আবু তাহের।

আমন্ত্রিত মেহমান হিসাবে উপস্থিত ছিলেন -হাজী সম্মেলনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আলহাজ্ব মোঃ নুর মিয়া কোম্পানি, ঢাকা লালবাগ মসজিদের খতিব আলহাজ্ব মাওলানা মুফতি শাহ মোহাম্মদ  শফিকুর রহমান, অধ্যক্ষ মাওলানা আলহাজ্ব আলী আশ্রাফ,হাজী মাষ্টার রুহুল আমিন, হাজী জহিরউদ্দীন, হাজী অহিদুর রহমান, হাজী মাকছুদুর রহমান ( মাকসুদ), হাজী আবু মুছা প্রমুখ।

হাজী সম্মেলন লাকসাম উপজেলাার অধীনস্থ বিভিন্ন গ্রাম থেকে হাজী সাহেবরা ফজরের নামাজের পরপর বিভিন্ন যানবাহনে করে হাজী সম্মেলন যোগদান করেন। 
হাজী সাহেবদের পদচারণায় মুখরিত কামড্ডা বাজার জামে মসজিদসহ আশেপাশে পুরো এলাকা।
হাজী সম্মেলন দীর্ঘ বয়ানে আমল-আখলাক নামাজ,রোজা, হজ্জ,যাকাতসহ ইসলামের বিভিন্ন দিক থেকে আলোকপাত করেন সম্মানিত হাজী সাহেবরা।

অনুষ্ঠানের প্রধান সঞ্চালক ও হাজী সম্মেলন এর সদস্য এইচ,এম আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন কাঞ্চন বলেন-  আল্লাহ -রাসূল ( সাঃ) আর্দশকে হ্নদয়ে ধারণ করে দুনিয়া ও আখেরাতে কল্যানে কাজ করাই আমাদের হাজী সম্মেলন মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।
আমাদের এই হাজী সম্মেলন সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক একটি সংগঠন। 
আজকে প্রতিষ্ঠার ৬ বছরে পদার্পণ হাজী সম্মেলন শতশত হাজী সাহেবদের অংশগ্রহণে আমরা আনন্দিত,  আলহামদুলিল্লাহ। 
হাজী সম্মেলনে আমন্ত্রিত হাজী সাহেবদেরকে  সকাললের নাস্তা ও দুপুরের খাবার পরিবেশনা করা হয়।
দোয়া ও মুনাজাতের মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক লাকসামের কামড্ডা বাজার কেন্দ্রীয় মসজিদে হাজী সম্মেলনের সমাপ্তি ঘটে।

পটিয়া পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের ডালিম প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থীর ব্যাপক গনসংযোগ

পটিয়া পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের ডালিম প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থীর ব্যাপক গনসংযোগ

স্টাফ

সেলিম চৌধুরী,  রিপোর্টারঃ-আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে ৬ নং ওয়ার্ডের ডালিম প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল মনসুর নোমান ব্যাপক গনসংযোগ করেছেন।শনিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ওয়ার্ডের দক্ষিণঘাটার পেয়ার মোহাম্মদ বাড়ি, চৌধুরী বাড়ি, মুন্সি বাড়ি, পাইকপাড়া, নয়া পুকুরের পাড়, মল্ল চাঁদের বাড়ি এলাকায় গনসংযোগ অনুষ্ঠিত হয়।
এসময় তার সাথে ছিলেন, সমাজসেবক আবু তৈয়ব, মুহাম্মদ নাইম, আবদুস সালাম, দিদারুল আলম, আবুল হোসেন, আবদুল হাকিম, রিফাত, সানজিদ, আশফাক, আজম, বাবলু, ইবলু প্রমুখ।
৬ নং ওয়ার্ডকে মাদকমুক্ত, ও মাদকসেবনকারী প্রতিরোধ, সালিসি বানিজ্য বন্ধ, হয়রানি মুক্ত সেবা নিশ্চিতকরন, আধুনিক ও সম্প্রিতির ওয়ার্ড গড়ে তোলতে মনসুর নোমানকে ডালিম প্রতীকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। ওয়ার্ডের হারানো ঐতিহ্য, গৌরব, মযার্দা ফিরিয়ে আনারও আহবান জানান।  তিনি এলাকাবাসীর প্রতি বিনীত আহ্বান জানিয়ে বলেন, এলাকার সার্বিক পরিবর্তন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা, পরিকল্পিত ও সমন্বিত উন্নয়ন সাধনের লক্ষে ডালিম প্রতীকে ভোট দিয়ে তাকে জয়যুক্ত করার।

বন্ধন স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা এনামুল হকের আজ ২৮ তম জন্মবার্ষিকী

বন্ধন স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা এনামুল হকের আজ ২৮ তম জন্মবার্ষিকী

ডা.এম.এ.মান্নান,টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:
১৯৯৩ সালের ১ লা ফেব্রুয়ারি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে টাংগাইল জেলার কালিহাতি থানাধীন আফজালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

তিনি ২০০৮ সালে দক্ষিন গয়লা হোসেন দাখিল মাদ্রাসা থেকে দাখিল পাশ করেন
এছাড়াও মেজর জেনারেল মাহমুদুল হাসান আদর্শ কলেজ থেকে ২০১০ সালে কৃতিত্বের সাথে এইচএসসি এবং বংগের আলিগড় খ্যাত সরকারি সা'দত কলেজ থেকে সমাজকর্ম বিষয়ে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন।

কর্মজীবনে মোঃ এনামুল হক 
লিটল স্টার কিন্ডারগার্টেনে শিক্ষকতা করেন বর্তমানে তিনি মেঘনা গ্রুপ অফ ইন্ড্রাস্ট্রিজে কর্মরত আছেন।
ব্যক্তিজীবনে তিনি একজন সমাজসেবী।
সমাজসেবক হিসেবে তার অনবদ্য অবদান পরিলক্ষিত হয়।যার প্রমান করোনা মহামারীর সময়ে তিনি পবিত্র রমজান মাসে অসহায় গরীব দুঃখীদের মাঝে ত্রান-সাহায্য করার জন্য 
এসএসসি ২০০৮ এবং এইচএসসি ২০১০ ব্যাচ টাংগাইলের বন্ধুদের নিয়ে ত্রাণ তৎপরতায় অংশগ্রহণ এবং ত্রান সরবরাহ করেন।

তিনি স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের নিয়ে ২০১৯ সালে বন্ধন স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের সংগঠন টাংগাইল নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন।তার স্বেচ্চাসেবী প্রতিষ্ঠান থেকে অনেক অনেক অসহায় রোগীরা বিনামূল্যে রক্ত পেয়েছে। 
শিক্ষার প্রতি প্রচন্ডভাবে আগ্রহ রয়েছে।

তিনি ২০২০ সালে বল্লভবাড়ী  গ্রামে একটি গণগ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠা করেন।এছাড়াও তিনি নিজে একজন স্বেচ্ছায় রক্তদাতা এবং অন্যদেরও রক্তদানে উৎসাহ দেন।তিনি মনে করেন স্বেচ্ছায় করলে রক্তদান বাঁচতে পারে আরেকটি প্রান।এছাড়াও তিনি ক্রীড়া ব্যক্তিত্বের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অংগনে তার বিশেষ অবদান রয়েছে।

ঝালকাঠিতে যুগান্তরের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

ঝালকাঠিতে যুগান্তরের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

মোঃ নাঈম হাসান  স্টাফ রিপোর্টারঃ
যুগান্তরের ২২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ঝালকাঠিতে আলোচনাসভা ও কেক কাটা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় প্রেসক্লাব হলরুমে যুগান্তর স্বজন সমাবেশ এর আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি সরদার মো. শাহ আলম, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার, প্রেসক্লাব সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা চিত্তরঞ্জন দত্ত, প্রবীণ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মনোয়ার হোসেন খান, সংবাদপত্র পরিষদ কর্মচারী ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মতিউর রহমান জলিল, যুগান্তর  প্রতিনিধি ও প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আক্কাস সিকদার। যুগান্তর স্বজন সমাবেশ সভাপতি সাইদুর রহমান রিপন এতে সভাপতিত্ব করেন। এছাড়াও বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।

সাতক্ষীরায় ১কোটি ৮৮ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা মূল্যের ১৪৮ পিচ ডায়মন্ড উদ্ধার

সাতক্ষীরায়  ১কোটি ৮৮ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা মূল্যের   ১৪৮ পিচ ডায়মন্ড উদ্ধার

আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি  সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাতক্ষীরার লক্ষীদাড়ী সিমান্ত থেকে   ১কোটি ৮৮ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা মূল্যের   ১৪৮ পিচ ডায়মন্ডের আংটিসহ ১ নারীকে আটক করেছে বিজিবি।  এঘটনায় রেবেকা বেগম ৪২) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে বিজিবি।  সোমবার সকাল ৮ টার দিকে বিজিবির নায়েক মো. ওয়াহিদ হোসেনের নেতৃত্বে  ডামমন্ডসহ মহিলা পাচারচক্রের সদস্যকে আটক করে। সোমবার সন্ধ্যায় বিজিবির অধিনায়ক লেঃ  কর্নেল  মোহাম্মদ  আল মাহমুদ পিএসসি  প্রেস ব্রিফিং এর মাধ্যমে জানান আটকৃত রেবেকা বেগম ভোমরার লক্ষীদাঁড়ী গ্রামের সাহেব আলীর স্ত্রী। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আটককৃত নারীকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

সরকারি ফি’তে মিলছে না জন্ম সনদ দূর্নীতি করতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা খেলেন চেয়ারম্যান

সরকারি ফি’তে মিলছে না জন্ম সনদ  দূর্নীতি করতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা খেলেন চেয়ারম্যান

লালমনিরহাট আঞ্চলিক প্রতিনিধিঃ শিশুর জন্ম থেকে ৪৫ দিন পর্যন্ত সরকারি নিয়মানুয়ী জন্ম নিবন্ধনের কোন ফি নেওয়া হয়না। তবে শিশুর ৫ বছর পর্যন্ত ও উপরে সব বয়সীদের ৫০ টাকা ফি নেয়ার নিয়ম করে দিয়েছে সরকার। তবে সরকারের এই নিয়ম মানা হচ্ছেনা লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার ৪ নং দলগ্রাম ইউনিয়নে আর সেই সরকারি ফি'তে মিলছে না জন্ম সনদ ''দূর্নীতি করতে গিয়ে সাংবাদিকের হাতে নাতে ধরা খেলেন চেয়ারম্যান ''
সেখানকার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সরকারি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে নিজেই নতুন নিয়ম করে প্রতি জন্মনিবন্ধনে ২০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত ফি আদায় করছেন। অভিযোগ ভুক্তভোগীসহ স্থানীয়দের।

দলগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ সরেজমিনে গিয়ে এমন অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া গেছে। জন্মনিবন্ধন করতে আসা ব্যক্তিদের নিকট নেয়া হচ্ছে দুই থেকে পাঁচশত টাকা এবং রসিদ দেয়া হচ্ছে ৫০ টাকার। ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে ৫০ টাকার রসিদ দেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগ চেয়ারম্যানকে করলে তিনি সাথে সাথে রসিদের অপর পৃষ্ঠায় বিভিন্ন খাত দেখিয়ে মিলিয়ে দেন বাড়তি টাকার হিসেব।
অত্র ইউনিয়নের উত্তর দলগ্রাম পাটওয়ারীটারী এলাকার ২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত্যু ছফর উদ্দিনের ছেলে ছকমল হোসেন তার বাচ্চার জন্মনিবন্ধনের জন্য আসলে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে চেয়ারম্যান রবিন্দ্রনাথ বর্মন ওই ব্যাক্তির নিকট জন্মনিবন্ধনের জন্য সাড়ে ৩ শত টাকা দাবি করেন।

অত্র ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের আর এক বাসিন্দা জানান, বাচ্চার জন্মনিবন্ধন ২৫০ টাকা দিয়ে নিয়েছি। তবে রসিদ দিয়েছে ৫০ টাকার।সোমবার ১ ফেব্রুয়ারী ৩ নং ওয়ার্ডের মানসিক ভারসাম্যহীন আতিয়ার রহমানের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম সাংবাদিকদের বলেন দুইটি জন্মনিবন্ধনের জন্য ৭০০ টাকা নিয়েছে।
শুধু তাই নয় সরকারি নিয়ম উপেক্ষা করে ইউপি চেয়ারম্যান জন্মনিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত ফি আদায় করেন বলে জন্ম নিবন্ধন নিতে আসা অনেকেই জানান।
ইউপি চেয়ারম্যান রবিন্দ্রনাথ বর্মনের নিকট জানতে চাইলে তিনি অতিরিক্ত ফি নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, সবমিলিয়ে প্রতি জন্মনিবন্ধন ফি ১৫০ টাকা নেয়া হচ্ছে।
এ বিষয় লালমনিরহাট জেলাপ্রশাসক আবু জাফর বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্তের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

ফেসবুকে আনন্দ খোঁজা নিছক মেকি বা প্রহসনের নামান্তর

ফেসবুকে আনন্দ খোঁজা নিছক মেকি বা প্রহসনের নামান্তর

নজরুল ইসলাম তোফা:: প্রেম, পুলক, উল্লাস, আহ্লাদ, পূর্ণতা, পরিতোষ প্রভৃতি একক, একাধিক বা সম্মিলিত অণুভুতিকে আনন্দ/সুখ বলে। জীববিদ্যা, মনঃস্তত্ত, ধর্ম  ও দর্শনে আনন্দের অর্থ কিংবা উৎস উন্মোচনের জন্যে বহুকালব্যাপী প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছে। যদিও আনন্দ/সুখ পরিমাপ করা বেশ কঠিন কাজ, কিন্তু বিজ্ঞানীরা নানান উপায়ে এই দুঃসাধ্য সাধন করার চেষ্টা করেছেন। জানা যায়, অক্সফোর্ডে আনন্দ কিংবা সুখ বিষয়ক গবেষণায় বহুসংখ্যক বৈশিষ্টের সঙ্গেই আনন্দের সরাসরি সংযোগ শনাক্ত করা হয়েছে। যেমন সামাজিক ক্রিয়া কর্ম কিংবা সম্পর্ক, দাম্পত্য অবস্থান, কার্যক্ষেত্র, স্বাস্থ্য, গণতান্ত্রিক স্বাধীনতা, আশাবাদ, ধর্মীয়সম্পৃক্ততা, এনডরফিন এবং আয় সহ সুন্দরের সান্নিধ্য।

এবার আসি, 'আনন্দ কিংবা সুখের' পরপরি আসে যেন একধরনের অনুভূতি সেটা পরস্পর বন্ধু সমাজ না হলে হয় না। অবশ্য অনেকেরই মনে করেন বন্ধুকে তো মনের সব কথা খুলে বলা যায়,বন্ধুত্ব ছাড়া ভালবাসা সম্ভব নয় এমন মত অনেকেরই আছে। আর এমন ধারণা থেকেই প্রিয়তম বন্ধুটিকে অনেকেই জীবনসঙ্গী হিসেবেও বেছে নিতে চান। তাতে কি ঘটে, অনেকেরই বৈবাহিক জীবনে বন্ধু ও বন্ধুতাও জানলা দিয়ে পালিয়ে যায়। এমন ঘটনা এখন হরহামেশায় ঘটছে। বিশেষ করে ফেসবুক প্রযুক্তি ব্যবহার করে। বিয়ে পর্যন্ত নিয়েও যাচ্ছে এমন ফেসবুক প্রযুক্তি‌, আর তারপরেই জীবনের অন্য মাত্রা যুক্ত হচ্ছে। পরিপূর্ণ এমন আনন্দের ময়দান হতে যখন প্রিয় বন্ধুকে বিয়ে করে সংসার জীবনে আনন্দ/সুখের ভাটা পড়ে তা খুবই দুঃখজনক।

আধুনিক মানুষের জীবনের সাথে নিবিড়ভাবেই জড়িয়ে  আছে ফেসবুক। এমন মাধ্যমকে কেউ অধিকার করতে পারে না। কিন্তু এখানে সম্পর্কটা অনেকটা পারস্পরিক স্বার্থে বাঁধা এমনটাই মনে হয়। একটু পরিস্কার করে বলি ফেসবুকের মাধ্যমে ভার্চ্যুয়াল বন্ধুত্ব তৈরির সাথে সাথেই ফেসবুক কিন্তু ভার্চ্যুয়াল শত্রুও তৈরি করছে। এ শত্রুতা ভার্চ্যুয়ালের সীমা রেখা ছাড়িয়ে প্রায়শই বাস্তবেও ঢুকে যাচ্ছে। এখানে ভার্চ্যুয়াল স্বার্থের লেনদেনের পাশা পাশি ঠকবাজিও চলে অবিরাম। নিঃসঙ্গ মানুষেরা চায় মানুষ তার সঙ্গে যোগাযোগ করুক, কথা বলুক। জানতে চান তার কথা। এ চাওয়া পাওয়ার লেনদেন চলে ফেসবুকে। বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় বন্ধুত্ব-সম্পর্কের হাতছানিটা  অনেকাংশেই যেন 'প্রতারণার জাল কি়ংবা মৃত্যুর ফাঁদ'‌। বন্ধুত্বের সম্পর্ক যে ভাবে বেড়ে যাচ্ছে সাইবার অপরাধ, তাতে এমন প্রশ্ন এখন সবচেয়ে বড়। বন্ধুত্বের আড়ালেই লুকিয়ে থাকে ঘাতকের দল। খুব সহজভাবেই ফেসবুকে অচেনা মুখ অচেনা মানুষ। সেখান থেকে এখন শুরু হয় 'বন্ধুত্বের পথচলা'। কখনও কখনও সেই সম্পর্কই ক্রমশ কাছে আসছে। গড়েও উঠছে খুবই নিবিড় সম্পর্ক। তাই, ভার্চুয়াল সম্পর্ক থেকে তৈরি হয় 'প্রেম এবং ভালবাসার' সম্পর্ক। সুতরাং ফেসবুকের এ ভার্চুয়াল জগতের মধ্যেই অনেকে ফাঁদ পাতে। প্রতারণার ফাঁদ।

তাদের গভীর বন্ধুত্বকে একসময় প্রেম ভেবে ভুলও করে বসে অনেকে। পরস্পরের পছন্দ-অপছন্দ, ভাল-মন্দের খেয়াল রাখাটাকে অনেকেই ভুলবশত- "অন্ধ ভালবাসা" বলে ধরে নেন। শুধু অন্ধ আকাঙ্খাই নয়। এমন অনেক আকাঙ্খাই শেষ হয়ে যায় ফেসবুকের ফাঁদপাতা ভূবনে। ভালোবাসা, ঘর গড়ার স্বপ্ন সব শেষ। গত কয়েকমাসেই সামনে এসেছে ফেসবুকের মাধ্যমে গড়ে ওঠা নানাভাবে বিভিন্ন সম্পর্কের মর্মান্তিক পরিনতি। বলতে হয় যে, এই চূড়ান্ত অবস্থার ভার্চ্যুয়াল বন্ধু ভার্চ্যুয়াল শত্রুতে পরিণত হওয়াটা নিজস্ব কৃতকর্মের ফল। যেহেতু এখন জগৎটাই  ভার্চ্যুয়াল তাই বন্ধুত্ব তৈরি করতে মানুষ খুব বেশি ভাবে ভাবনা চিন্তা করছে না। আর সে বন্ধুত্বকে ছুড়ে ফেলতে নূন্যতম চিন্তা করছে না।

যুগের পরিবর্তন যুবক-যুবতীরাই করছে, তারাই নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মারছে। আকাঙ্ক্ষার নৃশংস খুনের পথও শুরু হয় এই ফেসবুক-'প্রেমপর্ব' থেকে। ফেসবুকে যদিও কারো কারো খুবই ঘনিষ্টতা হচ্ছে। তার পরে প্রেম থেকে বিয়ে হচ্ছে। এরপরে নৃশংস খুনও হচ্ছে। বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় তরুণ প্রজন্মের সামনে এসব ভয়ঙ্কর বিপদ। নাবুঝে এপথে পা বাড়িয়ে অনেকেই জীবনটাকে শেষ করছে। সমাজতত্ত্ববিদরা এই গুলোকে নেতিবাচক দৃষ্টিতেই দেখছেন এবং বিভিন্ন অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

পরিশেষে বলতে চাই, ছবি বা ভিডিওতে লাইক দিচ্ছেন, বিনিময়েই আপনার ছবিতে বা ভিডিওতে লাইক দেওয়া অপরপক্ষের একটা সামাজিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। যে কোনো কারণে ইনবক্সে নগ্নতার চাহিদা সাড়তেই থাকে। সেখান থেকেই আরো বেড়ে যাওয়া ভিডিও চ্যাটটিংয়ের পাশাপাশি কাছে পাওয়ার বাসনা। চাওয়াপাওয়ার এমন সূত্র ধরে এক ধরনের 'সম্পর্ক এবং আশা' তৈরি হয়। সে আশা পূরণ না হলে সম্পর্কের অবনতি দেখা দেয়। বলা দরকার, দাম্পত্যের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ "যৌনতা"। কিন্তু এমন ভাবে কেন? ''আনন্দ এবং সুখকে'' আমাদের বুঝতে হবে। প্রকৃত বন্ধুর ভালবাসার টান এবং উশৃঙ্খল যৌনতার টান বা আকাঙ্খা একেবারে সম্পূর্ণ ভিন্ন। তাই এই ফেসবুকের নিলা খেলার সম্পর্কে চিড় ধরতে বাধ্য। প্রকৃত বন্ধুত্বকে চিনতে হলে সোশ্যাল মিডিয়ার ফেসবুক কেন? বেস্ট ফ্রেন্ডটাকে বেটারহাফ বানানোর আগে সব দিকগুলি ভেবে নেওয়াই উত্তম।

✍️লেখক:
নজরুল ইসলাম তোফা, টিভি ও মঞ্চ অভিনেতা, চিত্রশিল্পী, সাংবাদিক, কলামিষ্ট এবং প্রভাষক।

নওগাঁয় পুলিশ এর দারা আইনজীবী নির্যাতিত

নওগাঁয় পুলিশ এর দারা  আইনজীবী নির্যাতিত

রহমতউল্লাহ আশিকুর  জামান নুর,নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ নওগাঁয় পুলিশের মারধরের অভিযোগ তুলে আইনজীবীরা আদালত বর্জন করেছেন।জেলা আইনজীবী বার অ্যাসোসিয়েশন সোমবার বেলা ১১টার দিকে জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়।

বারের সভাপতি খোদাদাদ খান পিটু তিনি বলেন, বেলা ১১টার দিকে আবু সাঈদ মুরাদ নামে একজন আইনজীবী রিকশা নিয়ে আদালত চত্বরে প্রবেশ করার সময় প্রধান গেটে বাধা দেন ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক রাজিব ও পুলিশ সদস্য মুক্তার হোসেন।

"পরিচয় দেয়ার পরও বাধা দেন তারা। কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক ও শাহ আলম এগিয়ে যান। পুলিশ তিন আইনজীবীকে গালাগালসহ মারধর করে।"

এ ঘটনার বিচার চেয়ে আদালত চত্বরে বিক্ষোভ করেন আইনজীবীরা। পরে আইনজীবীদের জরুরি সভায় সোম-মঙ্গল দুই দিন আদালতে বর্জনের সিদ্ধান্ত হয় বলে জানান বার সভাপতি।ঘটনার পর আদালত চত্বর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

সদর থানার ওসি সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, জেলা ছাত্রলীগের পক্ষে ডিসির কাছে স্মারকলিপি দেওয়ার কথা ছিল। এ জন্য ওই এলাকায় যেন যানজট না হয় সেজন্য নির্দেশনা ছিল।এক আইনজীবী রিকশা নিয়ে আদালত চত্বরে প্রবেশের সময় পুলিশের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।"

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রাকিবুল আক্তার বলেন, "সকালে আদালতে প্রবেশমুখে একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি জানার পর তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে অপরাধ প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"

যুবলীগ নেতা হত্যা মামলায় কারাগারে গান্না ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, নাসির মালিতা

যুবলীগ নেতা হত্যা মামলায় কারাগারে গান্না ইউনিয়ন   চেয়ারম্যান, নাসির মালিতা


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃযুবলীগ নেতা জাকির হোসেন শান্তি হত্যা মামলায় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মালিথাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।সোমবার সকালে বিচারিক আদালত ঝিনাইদহ জেলা ও দায়রা জজ আদালত (অতিরিক্ত-১) তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে সকালে আদালতে আত্মসমর্পণ করে সে। বিজ্ঞ আদালত এসসি ৪৫/১৩ মামলায় তাকে কাষ্টরিতে নিয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

২০১০ সালের ৭ জুলাই রাতে গান্না বাজার থেকে কাশিমপুর নিজ বাড়িতে ফেরার পথে সন্ত্রাসীদের বোমা হামলার শিকার হয়ে ৩ দিন পরে ঢাকায় চিকিতসাধীন অবস্থায় মারা যায় জাকির হোসেন শান্তি। শান্তির শ্বশুর সিরাজুল ইসলাম মালিথা ৯ তারিখে ঝিনাইদহ সদর থানায় অজ্ঞাত নামে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৯,তারিখ ৯-৭-২০২১।

২০১১ সালের ২৪ অক্টোবর আদালতে চার্জশীট জমা দেয় পুলিশ।সেই থেকেই পলাতক মামলার ৯ নং আসামি নাসির উদ্দিন মালিথা। এই মামলায় পুলিশ প্রথমে ৮ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে।এর মধ্যে ৪ জন ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়। জবানবন্দিতে তারা উল্যেখ করেছেন হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ও অর্থের জোগানদাতা নাসির উদ্দিন মালিথা।

নাসির হত্যার সময় পর্যন্ত গান্না ইউনিয়ন যুবদলের সহ সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।পরে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আসেন। ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বাচিত হয় মামলার বোঝা মাথায় নিয়েই।

আদালতে মামলার খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ২০১৩ সালের পর থেকে ২০২১ সালের ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত এসসি ৪৫/১৩ ও এসটিসি ১০৯/১১ মামলা দুটিতে বিজ্ঞ বিচারক ১২টি ওয়ারেন্ট ইস্যু করলেও থানায় পৌছেছে মাত্র ২ দুটি।আদালতের খাতায় পলাতক থেকেও তিনি পুলিশ ও সিভিল প্রশাসনের সাথে প্রোগ্রাম করে বেড়িয়েছেন।করেছেন রাজনৈতিক প্রোগ্রাম।

অবশেষে জানুয়ারির ২২ তারিখে জাতীয় বিভিন্ন প্রিন্ট মিডিয়া ও অনলাইন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হলে আত্মগোপণে চলে যায় নাসির উদ্দিন। ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে বিচারিক আদালতে আত্মসমার্পণ করেলে কারাগারে পাঠায় আদালত।

ঝিকরগাছায় খাদ্যের নিরাপদ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

ঝিকরগাছায় খাদ্যের  নিরাপদ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ বাংলাদেশ   নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ কর্তৃক আয়োজিত ও ঝিকরগাছা উপজেলা প্রশাসকের সহযোগিতায়  উপজেলা পর্যায়ে জনসচেনতার সৃষ্টির লক্ষে ঝিকরগাছা উপজেলার হলরুমে আজ সোমবার  খাদ্যের  নিরাপদ শীর্ষক "সেমিনার" অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সেমিনারে  উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের সুযোগ্য ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম রেজা।
উক্ত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব আরাফাত রহমান।

কোটচাঁদপু‌রের নজীর বিহীন নির্বাচন এ বিজয় পৌর বাসীর, ধন্যবাদ প্রশাসন কে

কোটচাঁদপু‌রের নজীর বিহীন নির্বাচন এ বিজয় পৌর বাসীর, ধন্যবাদ  প্রশাসন কে

খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃ
কোটচাঁদপু‌রের নজীর বিহীন নির্বাচন।  পৌর বাসীর ভালোবাসায় সিগ্ধ হলেন পৌর   পিতা মোঃ স‌হিদুজ্জামান সে‌লিম। ঝিনাইদহ জেলার ঐতিহ্যবাহী কোটচাঁদপু‌র পৌর নির্বাচন অনু‌ষ্ঠিত হ‌লো ৩০ শে জানুয়ারী শ‌নিবার। ইতিহাস সৃ‌ষ্টিকারী অবাধ ও সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেবার জন্য  কোটচাঁদপুর পৌর বাসী ধন্যবাদ জানান ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক জনাব সরোজ কুমার নাথ, ঝিনাইদহ জেলা পুলিশ সুপার জনাব মোঃ মুনতাসিরুল ইসলাম ঝিনাইদহ জেলা নির্বাচন অফিসার জনাব মোঃ রকোনুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব মোঃ আনোয়ার সাইদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কোটচাঁদপুর সার্কেল জনাব মোঃ মোহামিনুল ইসলাম, ঝিনাইদহ র্যাব ৬, ঝিনাইদহ জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশের ওসি মোঃ আনোয়ার হোসেন,  কোটচাঁদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মোঃ আসাদুজ্জামান রিপন, কোটচাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ মাহবুবুল আলম  সহ উপজেলা প্রশাসনে সকল কর্মকর্তা কর্মচারী, ঝিনাইদহ জেলায় কর্মরত ইলেকট্রিক মিডিয়া, গণমাধ্যম, প্রিন্ট মিডিয়ার সকল সাংবাদিক ভাই দের কে ।  নির্বাচ‌নে স্বতন্ত্র প্রার্থী স‌হিদুজ্জামান সে‌লিম মোবাইল প্র‌তি‌কে মোট ৮৩৪২ ভোট পে‌য়ে বেসরকারী ভা‌বে নির্বা‌চিত হ‌য়ে‌ছেন তিনি। তাঁর নিকটতম প্র‌তিদ্ব‌ন্দি এস‌ কে সালাউদ্দিন বুলবুল সিডল (ধা‌নের শীষ) মোট ভোট ৭১২৮  এর থে‌কে ১২১৪ ভোট বে‌শি পে‌য়ে‌ছেন। অপর দুই প্রার্থী জা‌হিদুল ইসলাম না‌রি‌কেল গাছ প্র‌তি‌কে পে‌য়ে‌ছেন ২০৮৯ ভোট এবং শাহাজান আলী নৌকা প্র‌তি‌কে পে‌য়ে‌ছেন ২০৩৮ ভোট।

১৮৮৩ সা‌লে প্র‌তি‌ষ্ঠিত পৌর সভা‌টির ৪২ তম মেয়র হ‌লেন স‌হিদুজ্জামান সে‌লিম। প্রকাশ থা‌কে যে, মহামারী ক‌রোনা কা‌লে তি‌নি পৌরসভার প্র‌তি‌টি প‌রিবা‌রের নিকট অত্যন্ত জন‌প্রিয় হ‌য়ে উঠে‌ছি‌লেন। তাঁর সেবা ও সহ‌যোগীতার ফসলই এই নির্বাচন ব‌লে ম‌নে কর‌ছেন পৌরবাসী।

স‌হিদুজ্জামান সে‌লিম সকল‌কে সা‌থে নি‌য়ে ঐতিহ্যবাহী পৌরসভা‌টি‌কে এক‌টি ম‌ডেল পৌরসভা হি‌সে‌বে গ‌ড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত ক‌রেন।পৌরসভা‌টির মোট ভোটা‌রের সংখ্যা ২৭৪৯৩ এবং মোট ভোটার উপ‌স্থি‌তি ১৯৮৯৮ জন। উপ‌স্থি‌তির শতকরা হার ৭২.৩৭%।

আলমগীর আলম পূনরায় আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত

আলমগীর আলম পূনরায় আওয়ামী  মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত

সেলিম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টারঃ-চট্টগ্রামের পটিয়ার কৃতি সন্তান সাবেক চট্টগ্রাম আইন কলেজের মেধাবী ছাত্রনেতা,শিশু সংগঠক আলমগীর আলম বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটিতে পূনরায় সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। গত ৩১ জানুয়ারী ঢাকার ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে কেন্দ্রীয় বিশেষ প্রতিনিধি সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে প্রধান অতিথি  ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয়  তথ্য মন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ড. হাসান মাহমুদ এমপি ও বিশেষ অতিথি ছিলেন  মাদারীপুর থেকে বারবার নির্বাচিত সাংসদ সাবেক সফল ণৌ-পরিবহণ মন্ত্রী  ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রেসিডিয়াম সদস্য জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান খান এমপি,কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট বলরাম পোর্দ্দার।ঢাকার স্বাধীনতা হলে দ্বিতীয় অধিবেশনে পূনঃরায় কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটিতে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন প্রজন্মরত্ম এড. মোঃ আসাদুজ্জামান দূর্জয়  ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন লায়ন মেজবাহ উদ্দিন শফি ভাই ৷এদিকে আলমগীর আলমকে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বিভাগের দায়িত্ব দিয়ে পূনরায় সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করায় সংগঠনে চট্টগ্রাম, উত্তর,দক্ষিণ মহানগর,উপজেলার ভিবিন্ন কমিটির নেতৃবৃন্দ  কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির  সভাপতি  এড. মোঃ আসাদুজ্জামান দূর্জয় ও নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক লায়ন মেজবাহ উদ্দিন শফিকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

ঝালকাঠিতে খেসারি বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

ঝালকাঠিতে খেসারি বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

মোঃ নাঈম হাসান ঈমন স্টাফ রিপোর্টারঃ
ঝালকাঠির উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকাসহ চরাঞ্চলে খেসারি ডালের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। চলতি মৌসুমে তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশার কারনে কৃষিজাত ফসল এবং কৃষকের ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়ার পরও ফসলের ফলন ভাল হয়েছে। সঠিক সময়ে সঠিক পরিচর্যা এবং সার প্রয়োগ করার ফলে এই বছর খেসারি ডালের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

জেলার ৭টি ইউনিয়নের গ্রামাঞ্চলের কয়েক হাজার হেক্টর ফসলি জমিতে ডাল চাষের জন্য লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়। কয়েকদিনের তীব্র কনকনে শীতের প্রভাবে ক্ষেতের তেমন কোন ক্ষতি হয়নি। জেলার অধিকাংশ ফসলি জমি নিচু এলাকা হওয়ায় পানি জমে থাকার কারণে দেরিতে চাষাবাদ শুরু করলেও খেসারি ডালের ফলন ভাল হবে বলে আশা করছে কৃষকরা। জেলার কয়েকটি চর অঞ্চল নলছিটি, পোনাবালিয়া, নাচনমহল, মঠবাড়ি,বড়ইয়া, ব্যাপক হারে খেসারির চাষাবাদ করা হয়। বিভিন্ন এলাকায় এখনও তীব্র শীত থাকার পরেও কৃষকরা মাঠে নামে কাজ করে যাচ্ছে। এদিকে কৃষকরা ডালের অধিক ফলনের জন্য সময় মতো সার প্রয়োগ করেছে। আগামী এক মাসের মধ্যেই খেত থেকে ডাল তুলতে পারবে বলে আশা প্রকাশ করেছে। প্রত্যেক উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা কৃষকদের সর্বদা পরামর্শ দিচ্ছেন।

সংবাদযোদ্ধাদের অধিকার রক্ষায় অনলাইন প্রেস ইউনিটি

সংবাদযোদ্ধাদের অধিকার রক্ষায় অনলাইন প্রেস ইউনিটি

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ মফস্বল ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে কর্মরত বঞ্চিত সংবাদযোদ্ধাদের অধিকার রক্ষায় অনলাইন প্রেস ইউনিটি কাজ করছে। বিশেষ করে জেলা-উপজেলা প্রতিনিধিদের কমপক্ষে ৫ হাজার টাকা নূন্যতম সম্মানি ভাতা, রাষ্ট্রিয়ভাবে চিকিৎসা বিনামূল্যে করা সহ ৭ দফা দাবিতে এখনই অনলাইন প্রেস ইউনিটির সদস্য হয়ে আওয়াজ তোলার আহবান জানিয়েছেন ইউনিটির প্রতিষ্ঠাতা কলামিস্ট মোমিন মেহেদী।

১ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের বিপরিতে তোপখানা রোডস্থ কার্যালয়ে অনলাইন প্রেস ইউনিটি নারায়ণগঞ্জ, বগুড়া, গোপালগঞ্জ সহ বিভিন্ন শাখার নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।

নারায়ণগঞ্জ শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য সাজ্জাদ আহমেদ খোকন-এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান শান্তা ফারজানা বলেন, 'বায়ান্ন প্রেরণা-একাত্তর চেতনা সকল জাতীয় বীর শ্রদ্ধাজন-আমাদের লক্ষ্য একটাই সুষ্ঠু সংবাদ-সমৃদ্ধ দেশ প্রয়োজন' শ্লোগানকে লালনে আগ্রহী যে কোন সংবাদযোদ্ধা অনলাইন প্রেস ইউনিটির সদস্য হতে পারবেন। সদস্য হতে নামÑঠিকানা-বয়স-শিক্ষা ও কর্মস্থলের নাম লিখে ০১৭৯৫৫৬৮১৩৭ নম্বরে কল করলেই প্রাথমিক সদস্য করে নেয়া হবে। এছাড়াও কেন্দ্রীয় দপ্তর ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা ১০০০ তে এসেও সদস্য হতে পারবেন। অনলাইন প্রেস ইউনিটির সকল সদস্যকে নিয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবে ৩ মে ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ডে'তে ৭ দফা দাবি আদায়ে 'সংবাদযোদ্ধা র‌্যালী' করার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

এসময় নারায়ণগঞ্জ শাখার সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ সাই, সহ সভাপতি -আনিছুর রহমান রনি, সহ সাধারণ সম্পাদক হাতিম বাদশা, সাংগঠনিক সম্পাদক মিঠুন সর্দার, সহ প্রচার সম্পাদক মাহামুদুল হাসান স¤্রাট প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, বঞ্চিত অনলাইন সাংবাদিকতা ও সংবাদমাধ্যমের বিভিন্ন অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত অনলাইন প্রেস ইউনিটি সাগর-রুণী সহ সকল সংবাদযোদ্ধার ঘাতকদের বিচারের দাবিতে সমাবেশ, করোনা পরিস্থিতিতে সংবাদযোদ্ধাদের জন্য ফ্রি পিপিই, প্রণোদনার দাবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি প্রদান সহ গত ১০ বছরে সংবাদপত্র ও সংবাদযোদ্ধাদের দাবি আদায়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।  

সাড়ে ৯ হাজার বয়স্কভাতার কার্ড বাতিল

সাড়ে ৯ হাজার বয়স্কভাতার কার্ড বাতিল

মোঃ সবুজ মিয়া বগুড়া প্রতিনিধিঃবগুড়া জেলায় সাড়ে ৯ হাজার বয়স্কভাতার কার্ড বাতিল করা হয়েছে। জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে জন্ম তারিখ পরিবর্তনের অভিযোগে এসব ভাতার কার্ড বাতিল করা হয়। এমআইএস (ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম) কার্যক্রমে বয়সের অসঙ্গতি ধরা পড়ায় তাদের ভাতা বাতিল করা হয়।

আজ বুধবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সমাজসেবা অধিদপ্তর, বগুড়ার উপপরিচালক আবু সাঈদ মো. কাওছার রহমান। তিনি বলেন, 'জন্ম তারিখ পরিবর্তন করে যারা এসব করেছিল তাদেরগুলোই বাতিল করা হয়েছে। সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী এসব কার্ড নতুন করে অন্যদের মাঝে দেওয়া হবে। সেই লক্ষ্যে সমাজসেবা অধিদপ্তর কাজ করছে। আগামী মাসের মধ্যে এসব বয়স্ক ভাতার কার্ড পুনঃস্থাপন করা সম্ভব হবে।'

ধুনট উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল কাফী বলেন, 'এখন অনলাইনে ভাতার তথ্য পূরণ করতে হয়। এ ক্ষেত্রে নির্ধারিত বয়সের কম উল্লেখ করলে অনলাইন সেটা গ্রহণ করবে না। বয়োজ্যেষ্ঠ না হয়েও বয়স্ক ভাতাভোগীদের জায়গায় নীতিমালা অনুযায়ী অন্যদের প্রতিস্থাপন করা হবে। এমআইএস পদ্ধতির কারণে এ ধরনের কাজ আর হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।'

জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, সরকারিভাবে ১৯৯৭-৯৮ অর্থবছর থেকে বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য বয়স্কভাতা চালু করা হয়। বয়স্ক ভাতার ক্ষেত্রে পুরুষদের জন্য নির্ধারিত বয়স সীমা ৬৫ এবং নারীদের ক্ষেত্রে ৬২ বছর নির্ধারণ করা হয়। সবশেষ তথ্য অনুযায়ী বগুড়া জেলায় ১ লাখ ৪ হাজার ৭১৪ জনের বয়স্ক ভাতার কার্ড রয়েছে। এর মধ্যে সাড়ে নয় হাজার কার্ড বাতিল হয়েছে।

চলতি বছর সমাজসেবা অধিদপ্তরের নির্দেশে এমআইএস কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করেছে জেলা সমাজসেবা অফিস। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ৭২টি উপজেলায় প্রথম এবং ২০১৯-২০ অর্থ বছর থেকে সারা দেশে একযোগে এ কার্যক্রম চালু হয়েছে। এ কাজে সহযোগিতা করেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা ও সমাজকর্মীরা।

ইউনিয়ন পরিষদে কর্মরত উদ্যোক্তরা জানান, অনলাইনে সমাজসেবার সফটওয়্যারের মাধ্যমে ভাতাভোগীর বই নম্বর, জন্ম তারিখ ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর দিয়ে অনুসন্ধান করলে সব তথ্য বের হয়ে আসে। যদি কোনো ভাতাভোগীর বয়স ৬৫ বা ৬২ এর কম হয় তবে সফটওয়্যার তা ইনভেলিড লেখা দেখায়। এভাবে এমআইএস কার্যক্রমে বয়সের অনুপযোগী শনাক্ত হওয়ায় ভাতা বাতিল করা হয়েছে।

ডিজিটাল নিয়মে ডাটাবেজ করতে গিয়ে মূল জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) সঙ্গে মিলছে না ভাতাভোগীদের জন্ম তারিখ। এসব ভাতাভোগীদের বয়সের সবচেয়ে বেশি অসঙ্গতির জন্য এ অবস্থা হয়েছে। এর মধ্যে ধুনট উপজেলায় ৭৮৪ জনের বয়স্ক ভাতার কার্ড বাতিল করা হয়েছে। উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়নে ১২০ জন এবং সবচেয়ে কম পৌরসভায় ২৬ জন।

বাতিলকৃত ভাতাভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বয়স্কভাতার জন্য তারা জনপ্রতিনিধিদের কাছে ৫-৬ হাজার করে টাকা ও জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) জমা দিয়েছিলেন। জনপ্রতিনিধিরা অর্থের লোভে এনআইডি জালিয়াতির মাধ্যমে জন্ম তারিখ পরিবর্তন করে বয়স বাড়িয়ে বয়স্কভাতা করে দিয়েছেন। কিন্ত এখন সেই কার্ডগুলো বাতিল করা হয়েছে।


রাজাপুরের ধানসিঁড়ি নদীর দুই তীরে সবুজ ফসলের সমারোহ

রাজাপুরের ধানসিঁড়ি নদীর দুই তীরে সবুজ ফসলের সমারোহ

মোঃ নাঈম হাসান ঈমন স্টাফ রিপোর্টার 
ঝালকাঠির রাজাপুরের ধানসিঁড়ি নদী খননকৃত উর্বর পলি মাটিতে নদীর দুই তীরে নয়নাভিরাম সবুজের সমারোহ। উর্বর পলি মাটিতে বিভিন্ন জাতের সবুজ ফসল বিপ্লবের হাতছানি দিচ্ছে। বিভিন্ন জাতের সবুজ গাছপালার মধ্যে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির কলতানে মুখরিত নদীটির দুই তীর। রাতের দৃশ্য আরো মনকাড়া। ডুমুর গাছে জোনাকি পোকার জ্বলজ্বল আলোতে নদীর দুই তীর আলোকিত হয়ে যায়। যেকোনো মানুষের চোখ আটকে যাবে জোনাকি পোকার আলোর টিপ টিপ তালে।

উপজেলায় একমাত্র পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে হাতছানি দিয়ে ডাকছে প্রকৃতিপ্রেমীদের। সংশ্লিষ্টদের একটু নজরে এলেই দেশের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র হতে পারে রূপসী বাংলার কবি জীবনানন্দ দাশের কবিতার নদী 'ধানসিঁড়ি'। কারণ নদী, পানির কুলকুল শব্দ, সবুজ, পাখপাখালির কলতান ও বাহারি সবুজ রঙের বিভিন্ন ফসল কার না ভালো লাগে। স্থানীয় গাছিরা নদীর দুই তীরের খেজুর গাছ রস সংগ্রহের জন্য পরিষ্কার করে কেটে খিল লাগিয়ে হাঁড়ি ঝুলিয়ে দিয়েছেন। সেই বাঁশের কঞ্চির খিলে বসে পাখিদের খেজুর গাছের রস খাওয়ার দৃশ্য আরো আকর্ষণীয়। পাখির কিচিরমিচির সুরেলা ডাকে মন হারিয়ে যায় আচেনা দেশে।

বন বিভাগ থেকে জানা যায়, নদীটির ১২ কিলোমিটর তীরজুড়ে ঝালকাঠি সদর ও রাজাপুর উপজেলা বন বিভাগ সারিবদ্ধভাবে রোপণ করেছে রেইনট্রি, মেহগনি, আকাশমনি, শিশু, জারুল, বকাইন, কাঠ বাদাম, কাঁঠাল, পেয়ারা, জাম্বুরা, আমলকি, বহেরা, অর্জুন, অরহর, ডুমুরসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ।

এদিকে, স্থানীয় চার শতাধিক কৃষকরা নদীটির দুই তীরে শীতকালীন সবজিসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদে পুরোদমে ব্যস্ত সময় পার করছেন।  কৃষকরা নদীর দুই তীরের উর্বর মাটিতে আর্থিক মুনাফা লাভের আশায় চাষ করেছেন আলু, সরিষা, টমেটো, শিম, লাউ, কুমড়া, মুগডাল, লালশাক, মুলা, সুস্বাদু ক্ষীরা ইত্যাদি।

স্থানীয় একাধিক কৃষক জানান, প্রায় দীর্ঘ সাত কিলোমিটার নদীর দুই তীর জুড়ে প্রায় ১২টি গ্রামের ৪ শতাধিক কৃষক বিভিন্ন প্রকার কৃষি চাষ করেছেন। এর মধ্যে পেশদারি কৃষক রয়েছেন দুইশতাধিক এবং দুই শতাধিক রয়েছেন মৌসুমি কৃষক। কৃষকরা নিজেদের চহিদা মিটিয়ে অবশিষ্ট কৃষি ফসল উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারে চড়া মূল্যে বিক্রি করে অধিক মুনফা পেয়ে বেশ খুশি বলেও জানান তারা।

পিংরি গ্রামের কৃষক আকবার মৃধা জানান, ধানসিঁড়ি নদী তীরে তার প্রায় ৪০ শতাংশ জমি রয়েছে। এতে শালগম, পেপে, ধনিয়া, লালশাক, মুলা, লাউ ও মিষ্টি কুমড়াসহ একাধিক সাথী ফসল চাষ করেছেন। ৪০ শতাংশ জমিতে খরচ হয়েছে প্রায় দশ হাজার টাকা। তাতে যে ফসল হয়েছে তা দিয়ে নিজের চাহিদা মেটানোর পরে ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকা পাবে বলে তিনি আশা করছেন তিনি। একই গ্রামের কৃষক নজরুল ইসলাম, রিয়ান সিকদার, দেলোয়ার কারিকর, মোয়াজ্জেম মৃধা ও উজ্জল মৃধা। তারাও জানান একই সম্ভাবনার কথা।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর জানান, ধানসিঁড়ি নদীটির খননকৃত পলিমাটি বেশ উর্বর। শাক সবজি চাষের জন্য একদম যথাযথ। যে কারনে বিভিন্ন সবজি ও শাক ব্যাপক হারে ফলছে। এছাড়া কৃষকদের সার ও বীজ প্রনোদণা এবং বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

লালমনিহাটে পৌঁছেছে করোনার ৩৬ হাজার টিকা

লালমনিহাটে পৌঁছেছে করোনার ৩৬ হাজার টিকা

রশিদুল ইসলাম রিপন, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাট জেলার জন্য ৩৬হাজার ডোজ করোনা ভ্যাকসিন এসে পৌঁছেছে। গতকাল রবিবার (৩১ জানুয়ারি) দুপুর ১টা ৩০মিনিটের দিকে কড়া পুলিশ প্রহরায় করোনা ভ্যাকসিন বহনকারী বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের একটি ফ্রিজার ভ্যান লালমনিরহাট সিভিল সার্জন কার্যালয়ে এসে পৌঁছায়। এখানে সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলেন্দু রায় ভ্যাকসিন বুঝে নেন। এ সময় লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ সিরাজুল ইসলামসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ভ্যাকসিন কারা পাবেন, যেভাবে পাবেন: লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলেন্দু রায় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সরকার ঘোষিত নীতিমালা অনুযায়ী মহামারি করোনার প্রতিষেধক কাঙ্ক্ষিত ভ্যাকসিন ধাপে ধাপে অনেকেই পাবেন। তবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সম্মুখ সারির স্বাস্থ্যকর্মীরা আগে পাবেন। এরপর সম্মুখ সারির করোনা যোদ্ধা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, গণমাধ্যমকর্মী, জনপ্রতিনিধি, সরকারি-বেসরকারিকর্মী, ব্যবসায়ী, ধর্মীয় প্রতিনিধি, রাজনীতিকসহ সকল শ্রেণি পেশার মানুষ এ ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারবেন। তবে যিনি ভ্যাকসিন নিতে আগ্রহী তাকে অবশ্যই সরকারি ওয়েব পোর্টাল সুরক্ষা অ্যাপে-এ আবেদন করার পরই নিতে হবে। তবে আবেদন ফরম পূরণ করতে জাতীয় পরিচয়পত্র, মোবাইল নম্বর ও ব্যক্তিগত তথ্যাদি দিতে হবে। যদি কেউ আবেদন না করেন, তাহলে কাঙ্ক্ষিত এ ভ্যাকসিন নিতে পারবেন না।

 

লালমনিরহাট জেলার কোথায় কোথায় পাওয়া যাবে করোনা ভ্যাকসিন: লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২টি, হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২টি, কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২টি, আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২টি, লালমনিরহাট পুলিশ হাসপাতালে ১টি, লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ৮টি ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ২টি করোনা ভ্যাকসিন টিকা প্রদানকারী টিমসহ মোট ১৯টি কেন্দ্রে টিকা প্রদানের জন্য টিম গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলেন্দু রায়।

 

লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলেন্দু রায় জানান, টিকা গ্রহণকারীদের পছন্দের টিকা নিতে পারবেন। প্রত্যেক টিমে দক্ষ টিকাদান কর্মী ২জন ও ৪জন করে স্বেচ্ছাসেবক থাকবেন। জেলায় ৩৮জন টিকাদানকারী ও ৭৬জন স্বেচ্ছাসেবককে প্রস্তুত করা হয়েছে।

লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলেন্দু রায় আরও জানান, ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু করা হবে। লালমনিরহাট জেলায় নিবন্ধিত ব্যক্তিদের মধ্য থেকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জেলার ১৯টি কেন্দ্র থেকে এ টিকা প্রদান করা হবে। টিকাদান পরবর্তীতে সময়ের জন্য চিকিৎসা প্রদানের জন্যও আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে।

 লালমনিরহাটে করোনা সংক্রমণ, সুস্থতা, মৃত্যু ও পরীক্ষার হালচাল: লালমনিরহাট সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সহকারী প্রধান পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান সাংবাদিকদের জানান, ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি রবিবার পর্যন্ত লালমনিরহাটের ৪৫টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় ৫হাজার ২২৬জন ব্যক্তির শরীর থেকে করোনা ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া গেছে ৫হাজার ১শত ৮৫জনের। এর মধ্যে করোনা সংক্রমিত হয়ে ১০জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনা রোগী শনাক্ত ৯শত ৬৩জনের মধ্যে ৯শত ৪৫জন সুস্থ হয়ে কাজে ফিরেছেন। অবশিষ্ট ১৮জনের মধ্যে ২জন হাসপাতালে এবং ১৬জন নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন।

হযরত হারবাংগিরি শাহ ও সাতগাউছিয়া'র পীর দোয়া করলেন পটিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এমএ মন্নানকে

হযরত হারবাংগিরি শাহ ও সাতগাউছিয়া'র পীর দোয়া করলেন পটিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর পদপ্রার্থী এমএ মন্নানকে

পটিয়া প্রতিনিধিঃ- পটিয়া পৌরসভার ৮ নং ওর্য়াড হতে  নির্বাচিত সফল কাউন্সিলর আগামী ১৪ ই ফেব্রুয়ারী পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আবারও কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হয়ে হারবাংগিরী দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীল পীর আহমদ মিয়া ও সাতগাউছিয়া দরবারের সাজ্জাদানশীল পীর মোস্তাক বিল্লাহ সুলতানপুরীর সাথে সাক্ষাৎ করলে  কাউন্সিলর এম এ মন্নানকে দোয়া করেন এবং পটিয়া পৌরসভার ৮ নং ওর্য়াডবাসীকে তাকে ডালিম মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আহবান জানান। এ সময় এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি নির্বাচনের তফসীল ঘোষণার আগেই নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছে বড়ইয়ার ছালমা

ইউপি নির্বাচনের তফসীল ঘোষণার আগেই নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছে বড়ইয়ার ছালমা

মোঃ নাঈম হাসান ঈমন স্টাফ রিপোর্টার 
ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার ৫নং বড়ইয়া ইউনিয়নের  আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের মেম্বার পদ প্রার্থী হিসেবে প্রত্যাশি কণ্ঠশিল্পী ও সংবাদকর্মী ছালমা বেগম চষে বেড়াচ্ছে তার নির্বাচনী এলাকা। ২০২১ ইং সনের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নিজ ভোটার এলাকায় সকলের বাড়ী বাড়ী ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছে প্রতিনিয়ত, ছালমা এলাকার সকলের চেনামূখ, জেলার সনামধন্য  কণ্ঠশিল্পী ও সংবাদকর্মী। 
রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার প্রার্থী ছালমা।
এবিষয়ে ৮নং ওয়ার্ডের স্থায়ী বাসিন্দা প্রবীন শিক্ষক আঃ জলিল সিকদার, ৭নং ওয়ার্ডের বিশিষ্ট সমাজসেবক জনাব সামসুল হক আাকন ও দিনমজুর আঃ মান্নান,  ৯নং ওয়ার্ডের সনামধন্য প্রধান শিক্ষক মোঃ নাসির উদ্দিন, সমাজসেবক পারভেজ খান,  শারীরিক প্রতিবন্ধী ইলিয়াস শরীফ  ও সমাজসেবক ফজলুল হক শরীফ সহ ০৩ ওয়ার্ডের শতাধিক প্রতিবন্ধী, জেলে, দিনমজুর ও বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার নারী-পুরুষ জানান যে, ছালমা নিরলস, যোগ্য ও পরোপকারী, আমরাসহ এই ৩ ওয়ার্ডে সর্বস্তরের মানুষ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ছালমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে চাই।
এবিষয়ে সম্ভাব্য মহিলা প্রার্থী মোসম্মৎ ছালমা বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন যে, আমি তফসীল ঘোষণার প্রার্থী হিসেবে সময় সুযোগমতো ভোটারদের কাছে পরিচিত হওয়ার লক্ষে ঘুরে বেড়াচ্ছি, এছাড়াও আমি উল্লেখিত ০৩ ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের পদপ্রত্যাশি প্রার্থী হিসেবে নিজেকে যোগ্যপ্রার্থী মনে করি। তাছাড়া জনগন আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করলে রাষ্ট্রীয় সুবিধা পেতে মানুষের টাকা লাগেনা  সেটা অন্তত প্রমান করব এবং বন্টনে আত্মীয়করণ, দলীয়করণ ও স্বজন প্রীতি বর্জন করার চেষ্টা করব। আমার জন্য সকলে দোয়া করবেন।

দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টার শুভ জন্মদিন

দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টার  শুভ জন্মদিন

স্টাফ রিপোর্টার: দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক  উপদেষ্টা  মো: জহির উদ্দিনের ২৪ তম শুভ জন্মদিন। এই গুণী ব্যক্তির শুভ জন্মদিনে দৈনিক  কপোতাক্ষ নিউজ এর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করে বিবৃতি দিয়েছেন দৈনিক  কপোতাক্ষ নিউজ এর সম্পাদক ও প্রকাশক প্রভাষক মোঃ মহসীন আলী, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক শিরিন শিলা ও নিউজ  পরিবারের সকল কর্মকর্তা কর্মচারী বৃন্দ।

পটিয়া পৌর ৮ নং ওয়ার্ড পাঞ্জাবীর সমর্থনে মোস্তাক আহমদ এর লিফলেট বিতরণ

পটিয়া পৌর ৮ নং ওয়ার্ড পাঞ্জাবীর সমর্থনে মোস্তাক আহমদ এর  লিফলেট বিতরণ

পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ- চট্টগ্রামের পটিয়া পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী মোস্তাক আহমদ তার পাঞ্জাবী প্রতীকের সমর্থনে ৩১ জানুয়ারি সারাদিন গনসংযোগ  করে ভোট প্রার্থনা করেন।এসময় তিনি বলেন ৮ নং ওয়ার্ড কে সম্প্রতীতির ওয়ার্ড গড়ে তুলতে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী পাঞ্জাবী প্রতীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করার আহবান জানান। এসময় উপস্থিত দক্ষিণ জেলা ঋাএসমাজ সাবেক সাধারণ সম্পাদক সেলিম চৌধুরী, জাপা'র নেতা ফজলুল, আবদুস সাক্তার,আবু সিদ্দিক প্রমুখ। মোস্তাক আহমদ বলেন, নির্বাচন তফসিল শুরু হওয়ার পর থেকে ৮ নং ওয়ার্ডে শান্ত পরিবেশ একটি চক্র বিনষ্ট  করার পায়তারা চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনকে কঠোর হস্তে ধমন করা আহবান জানান।