আর অন্ধকার নয় এবার আলো পাবে ভোলা

আর অন্ধকার নয় এবার আলো পাবে ভোলা









মোঃ আওলাদ হোসেন জেলা প্রতিনিধি ভোলা,(দৌলতখান) 

আমরা যারা ভোলার সন্তান বা ভোলায় যাদের স্বজনেরা বসবাস করেন তারা সবাই কিছু হলেও জানি ভোলার মানুষ বিদ্যুৎ সমস্যা নিয়ে কি রকম যন্ত্রনার মধ্যে আছেন।ভোলা সব কিছুতেই  উদ্বৃত্ত জেলা।ভোলার গ্যাস সম্পদ ব্যবহার করে যে পরিমান বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয় তার সিকি ভাগও ভোলা পেলে,ভোলা কখনও অন্ধকারে থাকবেনা।বিডিএফআই সবসময় "ভোলার পক্ষে ভোলার পাশে" এ স্লোগান সামনে নিয়ে ভোলার বিদ্যুৎ সমস্যা কি ভাবে সমধান হবে এ নিয়ে চিন্তা ভাবনা করতে থাকে।বিডিএফআই বুঝতে পারলেন যে বর্তমান বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের মাননীয়  সচিব জনাব ড.সুলতান আহমেদ এবং পিডিবি এর ডাইরেক্টর এডমিন সরকারের অতিরিক্ত সচিব জনাব জহিরুল হক দুইজনই ভোলার কৃতি সন্তান।বিদ্যুৎ সমস্যা সমধানের এখনেই সময়,যে চিন্তা সেই কাজ। বিডিএফআই আন্তর্জাতিক সমন্বয়ক জনাব এম জহিরুল আলমকে আহবায়ক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব মাহফুজুর রহমানকে সদস্য সচিব করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি বিদ্যুৎ সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়া।আহবায়ক ও সদস্য সচিব ১ মাস বহু শ্রম মেধা দিয়ে পুরো কমিটির মাধ্যমে একটি রূপরেখা দাড়া করান।১৩ টি দাবী রেখে ৩৮ পৃষ্ঠার একটি রূপরেখা তৈরী করেন।
এর পর ১৩/০৭/২০২০ তারিখে বিকাল ৩ টায় বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের সাথে বিডিএফআই এর ২ ঘন্টা ব্যাপী অন লাইন সভা অনুষ্ঠিত হয়।সভার শুরুতে মাননীয় বিদ্যুৎ সচিব মহোদয় আলোচক উভয় পক্ষকে ধন্যবাদ প্রদান করেন।অতপর বিদ্যুৎ সমন্বয় কমিটির আহবায়ক জনাব এম জহিরুল আলম ৩৮ পৃষ্ঠার রূপরেখা ১৩ দাবী সাবলীল ভাবে উপস্থাপন করেন।রূপরেখার আলোকে গুরুত্বপূর্ন মতামত তুলে ধরেন সাবেক খাদ্য সচিব বর্তমানে জাপানের রাষ্টদুত বিডিএফআই এর উপদেষ্টা জনাব শাহাবুদ্দিন আহমেদ,
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সচিব,পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ভোলার গর্বিত সন্তান জনাব আবুল কালাম আজাদ,
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব,পিডিবি এর ডাইরেক্টর এডমিন জনাব জহিরুল হক,
জনাব ফজলুল কাদের মজনু মোল্লা,সভাপতি ভোলা জেলা আওয়ামীলীগ।
জনাব মাহাবুবুর রহমান হিরন, সাবেক প্রেসেডিয়াম যুবলীগ,
বাংলাদেশ সরকারের সিআইপি,বিবিএস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব ইন্জিনিয়ার আবু নোমান হাওলাদার।বিডিএফআই সম্মানীত  সভাপতি লায়ন আবুল কাশেম এমজেএফ, সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব মাহফুজুর রহমান,সাধারন সম্পাদক জনাব এম এ মজিদ,যুগ্ন সম্পাদক জনাব বশির উদ্দিন ও জাকির হোসন,
সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব
মিজানুর রহমান ও জনাব হোসেন সোহরাব উদ্দিন শাহ।রাজশাহী সার্কেল সভাপতি জনাব মিয়া জগলুল শাহদত,চট্টগ্রাম সার্কেল সভাপতি জনাব বাহার।অতপর বিডিএফআই এর ১৩ টি দাবীর সাথে একাত্মতা ঘোষনা দিয়ে মতামত প্রদান করেন,জনাব মোঃ বেলায়েত হোসেন, মাননীয় চেয়ারম্যান, পিডিবি।
জনাব গোলাম কিবরিয়া,ব্যবস্থাপনা পরিচালক, পিজিসিবি।
মেজর জেনারেল মঈন উদ্দিন (অব:)
মাননীয় চেয়ারম্যান, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড।
জনাব সফিক উদ্দিন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক,ওজোপাডিকো।সর্বশেষ সভার সভাপতি জনাব ড.সুলতান আহমেদ,মাননীয় সচিব বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয় সবার কথার আলোকে ঘোষনা দেন যে বিডিএফআই ১৩ দাবী বাস্তবায়নে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজা সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজা সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক





খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, 
( ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি) 



ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে  ১৫ জুলাই বুধবার  মাদক উদ্ধার করেন।এ সময়  অভিযান পরিচালনা করে আসামী ১। মোঃ আল আমিন (২০), পিতা-মোঃ নিহাল উদ্দিন বিশ্বাস, সাং-কিস মত হরিশংকরপুর, থানা ও জেলা-ঝিনাইদহ কে ২১০ (দুইশত দশ) গ্রাম অবৈধ মাদকদ্রব্য গাঁজা সহ আটক করেন। আকক কৃত মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ বিষয়  ঝিনাইদহ সদর থানায় নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে।

কয়রা নবাগত ইউএনও'র পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা

কয়রা নবাগত ইউএনও'র পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা






 কয়রা খুলনা প্রতিনিধি :- খুলনা কয়রা  উপজেলার নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাসের সাথে উপজেলা প্রশাসনের অফিসার বৃন্দ ,মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সাংবাদিক ও পেশাজীবি সংগঠনের প্রতিনিধিদের পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বুধবার ১৫ জুলাই  বিকালে উপজেলা পরিষদের হল রুমে প্রশাসনের আয়োজনে  উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি নুরে -ই আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা  চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এস এম শফিকুল ইসলাম ।
ইউআরসি নাজমুল হুদার পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন কয়রা সদর ইউ পি চেয়ারম্যান মোঃ হুমায়ুন কবির, দক্ষিণ বেদকাশী ইউ পি চেয়ারম্যান জি এম কবি শামসুর রহমান, অধ্যক্ষ ডঃ চয়ন কুমার রায়, নির্বাচন অফিসার মোঃ হজরত আলী, যুব উন্নয়ন অফিসার আব্দুর রশিদ, সাংবাদিক মোস্তফা শফিকুল ইসলাম, মোঃ রিয়াছাদ আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান বিশিষ্ট আইনজীবি এ্যাডঃ আরাফাত হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম (টিংকু) প্রমুখ।

পরিচিতি ও মতবিনিময় সভায় নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাস বলেন, সরকারি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় দ্রুত পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে উপজেলা প্রশাসন। স্থানীয় বিশিষ্টজনদের পরামর্শ ও  স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে সন্ত্রাস, মাদক ও দুর্নীতি হটিয়ে কয়রাকে একটি আলোকিত  উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলা হবে। সবার সহযোগিতা পেলে কয়রা  হবে দেশের সেরা উন্নত ও সমৃদ্ধ উপজেলা। তিনি আরও বলেন,  করোনা ভাইরাসের মহামারীতে ও আম্পান ক্ষতিগ্রস্ত কয়রা উপজেলার মানুষকে নিরাপদে রাখতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো।সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন ,
সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। তাছাড়া স্থানীয় বাসিন্দা হিসেবে আপনারা জানেন কোথায় কি হয়। সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসুচী বাস্তবায়ন করা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রধান দায়িত্ব। সমাজের নানা অনিয়ম ও বিধি বহির্ভূত কর্মকান্ড সহ আইন-শৃঙ্খলার বিষয়টিও দেখভাল করতে হয়। সুষ্ঠভাবে দায়িত্ব পালনের স্বার্থে আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। 

সাংবাদিকরা তাদের বক্তব্যে কয়রা উপজেলার বিভিন্ন সমস্যা, করণীয় ও সম্ভাবনার বিষয় তুলে ধরেন এবং সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

অসুস্থ ছেলের পাশে দাড়ালো,উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠন

অসুস্থ ছেলের পাশে দাড়ালো,উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠন


,
 মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ 
উমরমজিদ ইউনিয়নের  ঘুমারুভীমশীতলা মৌজার  খাইরুল ইসলাম কিছুদিন আগে অটোরিকশা এক্সিডেন্টে তার পা ভেংগে যায়, ছেলেটি তার পরিবারের একমাত্র উপার্জন করা ব্যক্তি ছিলো।  করোনার এই সময়ে এবং বন্যায় যখন অসহায় পরিবার গুলো খুবই কষ্টে দিন যাপন করছে ঠিক এই সময়ে পরিবারের একমাত্র ছেলেটি এক্সিডেন্ট হওয়ায় পরিবারটি খুবই বিপদের মধ্যে রয়েছে। এমতাবস্থায় ছেলেটির পায়ের অপারেশন করার প্রয়োজনীতা দেখা দেওয়ায় তারা দুঃচিন্তায় পরেছে। বিনা চিকিৎসায় তার পায়ের অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। এমন সময় আমাদের  "উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ সংগঠন" টির  কার্যনির্বাহী কমিটির একজন সদস্য মারফত সংগঠনের কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। 

আজ ১৫ জুলাই  রোজ বুধবার  বিকেলে "উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ এবং ব্লাড ব্যাংক " এর পক্ষ থেকে চিকিৎসার খরচের জন্য কিছু নগদ অর্থ প্রদান করা হয়।  ছেলেটি অসুস্থ হয়ে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি থাকায় তিনি সশরীরে উপস্থিত হতে পারেন নি। অসহায় অসুস্থ রোগীর প্রতিনিধি হিসেবে তার মা খুশি বেগমের  হাতে অনুদানের অর্থ তুলে দেয়া হয়। অসুস্থ ভাইয়ের বাসায় এই অর্থ হস্তান্তর করা হয়। যাহা চিকিৎসার জন্য সামান্য অর্থ।এই দুর্যোগ কালীন সময়ে সবাই বর্তমানে আর্থিকভাবে সংকটে থাকায় আমরা সামান্য কিছু অনুদান দিয়েছি।

 এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের দপ্তর বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক বিদুৎ আনসারী,কর্মসুচি ও  পরিকল্পনা যুগ্ন সম্পাদক আক্কাস আলী, পরিবেশ বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক মাশুক রাব্বি, সাস্থ্য বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক মেহেদী হাসান, 
প্রচার বিষয়ক যুগ্ন সম্পাদক  রাহুল,  শিক্ষা বিষয়ক  যুগ্ন সম্পাদক ইয়ামিন সরকার এবং সংগঠনের অন্যতম সদস্য মোস্তফা উপস্থিত ছিলেন। 

নগদ অর্থ হস্তান্তরের পর উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ সংগঠনের  প্রতিনিধিগণ অসুস্থ ছেলেকে আগামীতে দেখা করার প্রত্যয় ব্যক্তি করেন এবং ছেলেটির সুস্ততা কামনা করে দোয়া করেন।  অসুস্থ ছেলেটির মা  সংগঠন ও সংগঠনের সদস্যদের জন্য মনভরে দোয়া করেন এবং তার পরিবার, অসুস্থ ছেলে এবং দেশের মানুষের জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন। 

চিকিৎসার খরচ ব্যায়বহুল হওয়ার কারণে চিকিৎসার জন্য শুধুমাত্র উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠনের প্রচেষ্টায় প্রদত্ত এই অনুদান যথেষ্ট নয়। তাই তিনি সচ্ছল ব্যক্তিবর্গের কাছে চিকিৎসার খরচ বহনের জন্য আরো অর্থ সাহায্য প্রার্থনা করেন। তার পাশে দাড়ানোর জন্য উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ  এর পক্ষ থেকে দয়াশীল ব্যাক্তিদের প্রতি আহবান জানানো যাচ্ছে। 

রোগীর নামঃ মোঃ খাইরুল ইসলাম। 
পিতার নামঃ নুরজামাল ইসলাম 
মাতার নামঃখুশি বেগম 
মৌজার নামঃ ঘুমারুভীমশীতলা
গ্রামের নামঃ মৌলভীপাড়া

উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব কল্যাণ এবং ব্লাড ব্যাংক সংগঠন।

নবীনগরে বহুল প্রতীক্ষিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের উদ্বোধন আগেই কার্যক্রম চালু

নবীনগরে বহুল প্রতীক্ষিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের উদ্বোধন আগেই  কার্যক্রম চালু




এস.এম অলিউল্লাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে বহুল প্রতীক্ষিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।
পৌর এলাকার নারায়ণপুরে দীর্ঘ এক বছর আগে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভবন নির্মাণকাজ শেষ হলেও উদ্বোধনের অপেক্ষায় ছিল এতো দিন।

এরই মধ্যে নবীনগর বাজারে অগ্নিকাণ্ডে বাজার কমিটির সভাপতি মনির হোসেন এর ভবনে আগুন লেগে অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার পর নির্মিতব্য ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস ষ্টেশনটি উদ্বোধন করার দাবিতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

তারই প্রেক্ষিতে নড়েচড়ে বসে নবীনগর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল।
তাৎক্ষণিকভাবে নবীনগর উপজেলাকে অনাকাঙ্ক্ষিত অগ্নিকাণ্ডে রোধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান তিনি।

এমন পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করার আগেই প্রয়োজনীয় জনবলসহ অন্যান্য অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রপাতি গাড়ি ও মালামাল বরাদ্দ দেয়।

দ্বিতীয় শ্রেণীর মর্যাদা পাওয়া নবীনগর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস ষ্টেশনটিতে দুই ইউনিটে একজন সাব অফিসার, দুইজন লিডার, ফায়ারম্যান ১৩ জন ও দুইজন ড্রাইভার কর্মরত থাকবেন, ১টি ফাস্টকল গাড়ি, ১টি দ্বিতীয় কল গাড়ি রয়েছে।

কাজের পরিক্ষামুলক কার্যক্রম পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম, ওসি প্রভাষ চন্দ্রধর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনসের উপ সহকারী পরিচালক মোঃ তানহারুল ইসলাম সহ যুবলীগ ছাত্রলীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় গণমাধ্যম কর্মীদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনসের উপ সহকারী পরিচালক মোঃ তানহারুল ইসলাম বলেন, আমাদের স্টেশনটিতে এখনো প্রয়োজনীয় জনবল ও সরঞ্জামাদি অভাব রয়েছে, পর্যাক্রমে সকল উপকরণ সংযুক্ত করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম বলেন, নবীনগরের মানুষের প্রাণের দাবী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস স্টেশনটি সারাদেশের ন্যায় উদ্বোধনের অপেক্ষায় ছিল, কিন্তু অতিসম্প্রতি ঘটে যাওয়া নবীনগর বাজারের অগ্নিকাণ্ড আমাদের প্রয়োজনীয়তাকে তীব্র করে তুললে আমরা বিষয়টি নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করি।
মাননীয় এমপি মহোদয় বিষয়টি নিয়ে জোর তদবির করে কার্যক্রম পরিচালনার ব্যবস্থা করেন।

স্থানীয় সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল মুঠোফোনে জানান, নবীনগরে নির্মিতব্য ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনস স্টেশনটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার কথা ছিল।
কিন্তু নবীনগরের একাধিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আমি বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করেছি তাই আজ কার্যক্রম চালু হচ্ছে।
সেই জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে নবীনগরবাসীর পক্ষ থেকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

পরে উপস্থিত সবাইকে মিষ্টিমুখ করান নবীনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক পারভেজ হোসেন।
স্টেশনের বর্তমানে সরকারী মোবাইল নাম্বার ২৪ ঘন্টা খোলা থাকবে।
নাম্বারটি হল 01736619010

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গাঁজা সহ আটক ২ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গাঁজা সহ আটক ২ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী


কুষ্টিয়া প্রতিনিধি/ শ্যামা সাহাঃ

দৌলতপুরে বিশেষ অভিযান চালিয়ে সাত কেজি পাঁচশত গ্রাম গাঁজাসহ মোছাঃ তিলকজান খাতুন (৪৫) এবং মোছাঃ হাজেরা খাতুন (৬০) নামে দুই মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে দৌলতপুর থানা পুলিশ। কুষ্টিয়া, দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এস,এম আরিফুর রহমান এর নির্দেশে অভিযান পরিচালনা করে এস আই(নিঃ) মোঃ সুলতান আজম সঙ্গীয় অফিসার এ এস আই(নিঃ) মোঃ গোলাম মাবুদ ও ফোর্স সহ ইং-১৫-০৭-২০ খ্রিঃ সকাল অনুমান ১০.১০ ঘটিকার সময় দৌলতপুর থানাধীন দৌলতপুর থানাধীন শেহালা দক্ষিনপাড়া গ্রামস্থ জনৈক মোঃ জামসেদ (৪৪), পিতা-জামাত আলী এর বাড়ীর পশ্চিম পাশে পাঁকা রাস্তার উপর হইতে মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করেন।

দিনাজপুরে আলোর পথে জাগো যুব-এর মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন

দিনাজপুরে আলোর পথে জাগো যুব-এর  মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন



মামুনুর রশিদ, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে আত্ন  কর্মসংস্থান বিষয়ক কার্যক্রমোর অংশ হিসেবে ১৫ জুলাই বুধবার সকাল ১১টায় আলোর পথে জাগো যুব, দিনাজপুর এর আয়োজনে কেবিএম কলেজ হল রুমে শতাধিক প্রশিক্ষনার্থীদের সমন্বয়ে ২দিন ব্যাপী ঝিনুক থেকে মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়েছে। উক্ত ২দিন ব্যাপী কর্মশালাটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম।
অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবুল কালাম আজাদ এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন কেবিএম কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ জিয়াউল হুদা, পাটোয়ারী বিজনেস হাউজ প্রোঃ লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সহিদুর রহমান পাটোয়ারী মোহন, রাফু সফট,দিনাজপুর এর সিইও মোঃ রাফায়েত হোসেন রাফু, আলোর পথে জাগো যুব’র উপদেষ্টা চেয়ারম্যান মোঃ মকিদ হায়দার শিপন প্রমূখ।
মুক্তা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, এই মহামারি করোনার প্রাক্কালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ বিভিন্ন সেবা মূলক এনজিও এবং সমাজ সেবা মুলক প্রতিষ্ঠান গুলোর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সেই সাথে বিভিন্ন এলাকার যুবকেরা কর্মহীন হয়ে বসে রয়েছে আর এই সময় তাদের বেকারত্ব দুরিকরনের দিক চিন্তা করে এই সংগঠনটি যে উদ্যেগ গ্রহণ করেছে আমি তাদের অভিনন্দন জানাই। তিনি আরও বলেন, এই প্রশিক্ষণ শেষে দিনাজপুরের আগ্রহী যুবকদের মুক্তা চাষের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দিনাজপুরের রাম সাগরের দিঘিটি মুক্তা চাষিদের জন্য বরাদ্দ দেয়ার ব্যবস্থা করে দিব।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন আলোর পথে জাগো যুব, দিনাজপুরের সভাপতি মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন।

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত -১

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত -১





মাহফুজা আক্তার (মাটিরাঙ্গা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা)প্রতিনিধি

আনুমানিক আজ (১৫ জুলাই)  রাত ৭ঃ৩০ টার সময় গুইমারার বাইল্যাছড়ি (বুদুমপাড়া) মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় রেজাউল (২১) নামের একজন নিহত হয়েছেন। 
নিহতের বাড়ি জালিয়াপাড়া (বরপিলাক) বলে জানা গেছে।  

মোটরসাইকেলে যাত্রা পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

মোহনগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর আব্দুল মমিনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

মোহনগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর আব্দুল মমিনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত


 

আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি

 বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, সাবেক খাদ্য, ত্রাণ-পুনর্বাসন ও কৃষি মন্ত্রী আব্দুল মমিনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে।

এ উপলক্ষে বুধবার (১৫ জুলাই) প্রয়াত নেতার জন্মস্থান নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে আব্দুল মমিন স্মৃতি পরিষদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের দুইটি অংশ দিনব্যাপী পৃথক কর্মসূচির আয়োজন করে। 

কর্মসূচির মধ্যে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, মরহুমের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও মাল্যদান, কালো ব্যাজ ধারণ, কবর জিয়ারত, মিলাদ মাহফিল, কাঙালি ভোজ ও আলোচনাসভা।

সকাল ১০টায় প্রয়াত জননেতার কবরে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র লতিফুর রহমান রতনের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের একটি অংশের নেতাকর্মীরা।  পরে বেলা ১২টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শহীদ ইকবালে নেতৃত্বে অপর অংশের নেতাকর্মীরা।

মোহনগঞ্জে চোরাই বিদ্যুতে শিয়ালজানি খালের উন্নয়ন কাজ

মোহনগঞ্জে চোরাই বিদ্যুতে শিয়ালজানি খালের উন্নয়ন কাজ






আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি (নেত্রকোনা):
 নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের ছড়াছড়ি। পৌরশহরের শিয়ালজানি খালের দুই পাশে স্টিলের রেলিং বসানোর কাজে বৈদ্যুতিক খাম্বা থেকে অবৈধভাবে সংযোগ দিয়ে ড্রিল মেশিন ব্যবহার করছেন ঠিকাদার। 

ইতিমধ্যে সরকারি পাইলট স্কুলের ছয়তলা ভবন নির্মাণে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবহারের ঘটনার এলাকায় সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার শিয়ালজানি খালের উন্নয়ন প্রকল্পে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ড্রিল মেশিন চালানোর তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এর দুই দিন আগেও পৌরশহরের রাউত পাড়া এলাকায় ড্রেন নির্মাণ কাজে রড কাটার কাজে অবৈধ সংযোগ ব্যবহার করা হয়। এ সময় সংযোগ লাগাতে গিয়ে শামীম মিয়া নামে এক শ্রমিক বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

সম্প্রতি বিদ্যুতের ভুতুরে বিলের জন্য এসব অবৈধ সংযোগকে দায়ী করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন গ্রাহকরা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, শিয়ালজানি খালের দুই পাড়ে রেলিং বসানো কাজের বরাদ্ধ এক কোটি ৬০ লাখ টাকা। ময়মনসিংহের এম রহমান নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এ কাজটি করছে। ইতিমধ্যে বেশি অর্ধেক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তবে পুরো কাজেই অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগে করা হয়েছে।

বুধবার (১৫ জুন) সরেজমিন এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। এ সময় শিয়ালজানি খালপাড়ে ড্রিল মেশিন চালাচ্ছেন শ্রমিক বাবলু ও মতিউর রহমান। তারা জানান, ঠিকাদার ও পাউবো কর্মকর্তাদের নির্দেশেই খাম্বা থেকে সংযোগ নিয়ে কাজ করছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের(পাউবো) উপ-সহকারী প্রকৌশলী সোহাগ ফকির বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, 'আমি নতুন জয়েন করেছি। এই বিষয়ে তেমন জানি না। আর বক্তব্য দিতে হলে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে দিতে হবে।' বিস্তারিত জানতে উপ বিভাগীয় প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের বিষয়টি স্বীকার করে পাউবো'র উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী অমিতাব চৌধুরী বলেন, আশেপাশে বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছিল না তাই এভাবে খাম্বা থেকে লাইন টেনে কাজ করা হচ্ছে। আর কয়দিনেই মধ্যেই কাজটি শেষ হয়ে যাবে। তবে এই বিষয়টি নিয়ে কিছু না লিখার জন্যও তিনি জানান।

তবে এ বিষয়ে তিনি অবগত নন বলে জানান মোহনগঞ্জ জোনাল পল্লীবিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম বিপ্লব কুমার পাল।

আশাশুনিতে কার্পেটিং রাস্তার উপর বাঁশের সাঁকো, ৫৮ দিনেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সওজ,

আশাশুনিতে কার্পেটিং রাস্তার উপর বাঁশের সাঁকো, ৫৮ দিনেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সওজ,





 আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি:  সুপার সাইক্লোন আম্পানে খোলপেটুয়া নদীর বাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের পানি প্রবাহিত হয়ে সড়ক ও জনপদ বিভাগের আশাশুনির মাড়িয়ালা থেকে ঘোলা ত্রিমোহনী পর্যন্ত প্রায় ৩ কি.মি. সড়কের ৭টি স্থানে ভেঙ্গে বিস্তীর্ণ এলাকায় আজও জোয়ার-ভাটা বয়ে চলেছে। এর মধ্যে ৩টি স্থানে একেবারে গভীর হয়ে যাওয়ায় সেখানে বাঁশের সাঁকো দিয়ে বানভাসী মানুষ যাতয়াত করছে। আম্পানের পর আজ ৫৮ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত সড়ক ও জনপদ বিভাগ নির্মানাধীন জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি সংস্কারের কোন পদক্ষেপ নেয়নি বলে ক্ষুব্ধ বানভাসী এলাকাবাসী। খুলনার কয়রা, শ্যামনগর ও কালীগঞ্জের এক অংশ এবং আশাশুনি উপজেলার দক্ষিণ অঞ্চলের সাথে একমাত্র যোগাযোগর মাধ্যম হচ্ছে এই সড়ক। সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে দক্ষিণ অঞ্চলে দূর্গত মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, জরুরী ঔষধ পরিবহন ও সুপেয় পানি পৌছাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। শ্রীউলা ইউনিয়নের মাড়িয়ালা বাজার থেকে প্রতাপনগর ইউনিয়নের ঘোলা বাসষ্ট্যা- পর্যন্ত ৩ কি.মি. সড়কের উপর দিয়ে নদীর জোয়ার-ভাটা চলতে থাকায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। ভুক্তভোগীরা বলেন প্লাবিত এলাকার দূর্গত মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, জরুরী ঔষধ পরিবহন ও সুপেয় পানি পৌছাতে কি পরিমানে হিমসিম খেতে হচ্ছে সেটা না দেখলে বুঝতে পারবেন না। ছোট ছোট শিশু, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কলিমাখালী গ্রামের ৬৫ পরিবার কলিমাখালী প্রাইমারি স্কুলে (২৩), নাসিমাবাদ সাইক্লোন সেল্টারে (২৭) ও মাদ্রাসায় (১৫) আশ্রয় নিয়ে করোনার মধ্যেও গাদাগাদি হয়ে বসবাস করছে। পানিবন্দী গ্রামগুলোর অধিকাংশ বাড়ীই তাদের ভিটার উঁচু স্থানে বাঁশের মাঁচা করে নিয়ে তার মধ্যেই মানবেতর জীবন যাপন করছে। সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় জোয়ারের সময় নৌকায় আর ভাটায় পায়ে হেঁটে চলা ছাড়া কোন উপায় নেই। এসব এলাকার মানুষ তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র কিনতে মাড়িয়ালা ও নাকতাড়া কালীবাড়ি বাজার পর্যন্ত আসতেই তাদের হিমসিম খেতে হচ্ছে। সরকারি বেসরকারি ত্রান কম-বেশি পৌঁছালেও চাহিদার তুলনায় সেগুলো নেহাতই অপ্রতুল। স্থানীয় সাংবাদিক ডা. শাহজাহান হাবিব জানান, ভেঙ্গে যাওয়া ও ক্ষতিগ্রস্ত এ দুর্গম সড়ক দিয়ে কত কষ্ট সহ্য করে কিভাবে মানুষ চলাচল করছে সেটা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। সুপেয় পানির জন্য মানুষের হাহাকার যেমন আছে অমূল্য এই পানি বহন করে বাড়ী নিয়ে যাওয়া নিত্য সংগ্রামের মত। এছাড়া বিদ্যুৎ বিহীন অন্ধকারে থাকতে হচ্ছে। এছাড়া প্রায় দু’মাস কেউ মিষ্টি পানিতে গোসল পর্যন্ত করতে পারেনি। অনতিবিলম্বে ভেঙ্গে যাওয়া হাজরাখালি বাঁধটি নির্মান করে এলাকায় জোয়ার-ভাটা বন্ধ করতে না পারলে মানুষের দুর্ভোগ বাড়তেই থাকবে। শ্রীউলা ইউনিয়নের ভেঙ্গে যাওয়া হাজরাখালি বাঁধটি নির্মান করে এলাকায় জোয়ার-ভাটা বন্ধ করতে অবিলম্বে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বানভাসী মানুষ।

মাধবপুরে এসিল্যান্ড আয়েশা আক্তার করোনায় আক্রান্ত

মাধবপুরে এসিল্যান্ড আয়েশা আক্তার করোনায় আক্রান্ত





লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জ মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আয়েশা আক্তার প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত। ১৪ জুলাই মঙ্গলবার রাতে রিপোর্টে তাঁর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ ইশতিয়াক আল-মামুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এদিকে সহকারী কমিশনার ভূমি আয়েশা আক্তার করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় খবরে মাধবপুর উপজেলার সাধারণ মানুষ তার সুস্থ্যতা কামনায় ব্যাকুলতা প্রকাশ করেছেন।

জানা গেছে,উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আয়েশা আক্তার করোনা সংকটের শুরু থেকেই মাধবপুর বাসীর পাশে থেকে সার্বক্ষণিক দায়িত্বপালন করেছেন। করোনার সম্মুখ সারির যোদ্ধা হিসেবেই তাকে মনে করেন মাধবপুর উপজেলাবাসী।

উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বলেন, সহকারী কমিশনার ভূমির শারিরিক অবস্থা ভাল আছে। তাঁর মনোবল শক্ত রয়েছে তিনি সব ধরনের নিয়ম মেনে চলছেন। মঙ্গলবার রাতে তার করোনা পজেটিভ নিশ্চিত হওয়ার পর মাধবপুর উপজেলা পরিষদের সরকারি বাসায় স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন।

মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আয়েশা আক্তার মুঠোফোনে জানান, এর পূর্বে দুইবার করোনার স্যাম্পল নেয়া হয়েছিল। তখন রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল ১২-তারিখ থেকে কিছুটা অসুস্থ্যবোধ করায় পুনরায় স্যাম্পল প্রেরণ করা হয় ১৪-তারিখ রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে।

তিনি বলেন, আমি শারীরিক ভাবে সুস্থ্য আছি। সাস্থ্যসেবা মেনে হোম কোয়ােরেন্টিনে আছি। সকলের নিকট আমার সুস্থ্যতার জন্য দোয়া কামনা করছি। উপজেলাবাসী যেন সুস্থ্য থাকেও ভাল থাকে সেই কামনা করছি।

বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের তথ্যমতে, করোনা সংকট শুরু থেকে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আয়েশা আক্তার অসহয়ের পাশে ছিলেন। হতদরিদ্রের মাঝে সরকারি ত্রাণ বিতরণ, আক্রান্তদের সহায়তা প্রদান।

পাশাপাশি করোনা প্রতিরোধে তার কঠোরতাও ছিল নজরকাড়ার মত। বিশেষ করে বিভিন্ন বাজারে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ও মাক্স পরা, সরকারি নিয়মে বাহিরে দোকানপাট খোলা রাখা বন্ধ করতে দিনরাত পরিশ্রম করে সাধারণ মানুষের হৃদয়ের মাঝে স্থান করে নিয়েছেন তিনি।

কৃষ্ণ জীবনপুর খামার গাঁতী দারুস সুন্নাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসায় নাসিম স্মরনে দোয়া ও মিলাদ মাফিল

কৃষ্ণ জীবনপুর খামার গাঁতী দারুস সুন্নাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসায় নাসিম স্মরনে দোয়া ও মিলাদ মাফিল




 মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধি - ১৪ জুলাই বাদ আসর কৃষ্ণ জীবনপুর খামার গাঁতী দারুস সুন্নাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসায় নাসিম স্মরনে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সাবেক রতনকান্দি ইউনিয়ন আঃমী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও অত্র প্রতিষ্ঠানের সভাপতি আসলাম উদ্দিন শেখ এর  সভাপতিত্বে মরহুম নাসিমের জীবনীর উপর স্মৃতিচারণ মূলক বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদ ও মুনসুর নগর থানা আঃ লীগের যুগ্ন আহবাক গোলাম রব্বানী তালুকদার, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ ছাইদুল ইসলাম জুরান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। পরে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া পরিচালনা করেন হাফেজ মাসুদুর রহমান, অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ৭ নং ওয়ার্ড আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম । এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন রতনকান্দি ইউনিয়ন আ:লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোস্থাফিজুর রহমান বিল্পব, রফিকুল ইসলাম মাস্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আলী হোসেন, সাবেক ছাত্রনেতা নূরে আলম রতন, সিরাজগঞ্জ সদর থানা আঃমী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি মাহমুদুল হাসান মিল্টন, ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি আসলাম উদ্দিন, আঃমী স্বেচ্ছাসেবক লীগেরর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সোহেল রানা, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক রোকন উদ্দিন, যুবলীগের সাঃ সম্পাদক মোঃ বুলবুল আহম্মেদ ভুট্র, ইউপি সদস্য হীরন, আবুল কালাম আজাদ, অত্র মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও ইউপি সদস্য আঃ আলিম, ইউনিয়ন মহিলা আঃলীগের নৃত্রী মোছাঃ রিনা খাতুন ও কেয়া খাতুন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্মাদক সহ মাদ্রাসার শিক্ষক ছাত্র এবং এলাকার গন্য মান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

খুলনার আজকের করোনা ভাইরাসে নতুন সনাক্ত ৩৫৩৩, মৃত্যু ৩৩ জন।

খুলনার আজকের করোনা ভাইরাসে নতুন সনাক্ত ৩৫৩৩, মৃত্যু ৩৩ জন।





 স্টাফ  রির্পোটার শ্যামা সাহাঃ
১৩ জুলাই সোমবার খুলনা মেডিকেল কলেজের ল্যাবে নমুনা দেওয়া হয়েছিল ১৪,০০২ তার ভিতর নতুন করে সনাক্ত হয়েছে ৩,৫৩৩ জন ডঃ মেহেদী নেওয়াজের তথ্য মতে জানাগিয়েছে। ৩,৫৩৩ জনের মধ্যে নতুন সুস্থ হয়েছে ১,৭৯৬ জন  তার ভিতরে মৃত্যু হয়েছে ৩৩ জনের । তার মধ্যে পুরুষ ২৭ সনাক্ত   এবং নারী ৬ জন, সে দিক থেকে আজকে বুধবারের তথ্য মতে নারীর থেকে পুরুষের মৃত্যু হার বেশি, আজকের তথ্যর উপর সরকার এবং প্রশাসনকে দৃষ্টি দিতে বলা হলো করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষাপেতে । খুলনা বিভাগীয় প্রশাসন জনগনকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য বলা হয়েছে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি, জন সমাগম এড়িয়ে চলি। আর সেই সাথে নিজকে সর্তকতা অবলম্বন রাখুন সরকার ও ডাক্তারের পরামর্শ মতে প্রতিটা মানুষের সচেতন হওয়ার জন্য বলা হয়েছে। 

কোটচাঁদপুরের জালালপুর দাখিল মাদ্রাসার নিয়োগে চাকরি পেলো ১৩ বছরের কিশোর

কোটচাঁদপুরের জালালপুর দাখিল মাদ্রাসার নিয়োগে  চাকরি পেলো ১৩ বছরের কিশোর






খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার। ( ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি) 



ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরের জালালপুর দাখিল মাদ্রাসার নিয়োগে চাকরি পেয়েছে ১৩ বছরের কিশোর মর্মে অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার জালালপুর দাখিল মাদ্রাসার গত ২৮ শে জুন সুপার সহ ৪টি পদে নিয়োগে জালাল পুর গ্রামের কাইয়ুম মোল্লার ছেলে আব্দুল্লাহকে পরিছন্ন কর্মী পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আব্দুল্লাহর আবেদন পত্রে জন্ম তারিখ ০১/০১/ ২০০০ ইং দেওয়া আছে। সে মোতাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নিকট থেকে জন্ম নিবন্ধন সদন সংগ্রহ করা হয়েছে। কিন্ত ২০১৮ সালের মাদরাসা বোর্ড থেকে প্রাপ্ত জুনিয়ার দাখিল পরীক্ষার সনদে জন্ম তারিখ আছে ১৫ই ডিসেম্বর ২০০৫ সাল। সেই অনুযায়ী আব্দুল্লাহর বর্তমানে বয়স হয় সাড়ে ১৩ বছর। এঘটনায় স্থানীয়রা বলেন এই নিয়োগে ব্যাপক জালিয়াতি ও অনিয়ম আছে যা উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত হলে বেরিয়ে আসবে। যেখান থেকে আলেম ওলামার জন্ম সেখানে যদি এই ধরেনর ঘুষ দুর্নীতির মাধ্যমে নিয়োগ হয় তাহলে দেশে কি ভাবে ভাল আলেমের জন্ম হবে। দুর্নীতিযুক্ত নিয়োগ বাতিলের দাবী জানায় তারা। জন্ম সনদ প্রসঙ্গে কুশনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান বলেন, আমরা কাউকে জন্ম সনদ দিয়ে হলে তার বয়স প্রমানের জন্য বিদ্যালয়ের প্রতায়ন পত্র অথবা কোন ডাক্তারের প্রত্যায়ন পত্র এবং টিকার কার্ড নিয়ে থাকি। এই ক্ষেত্রে জালাল পুর দাখিল মাদ্রাসার সুপার ইলিয়াস মাদ্রাসার প্যাডে প্রত্যায়ন পত্র দেওয়ার পর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জন্ম সনদ দেওয়া হয়েছে। জালালপুর দাখিল মাদ্রসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি ওবায়দুল হক বল্টু মিয়া বলে যে নিয়োগের ক্ষেত্রে সর্বনিন্ম বয়সের নির্ধারণ নেই। উপজেলা শিক্ষা অফিসার, ডিজির প্রতিনিধি সহ ৫ সদস্য বিশিষ্ট নিয়োগ কমিটি থেকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। কোটচাঁদপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ রতন আলী বলেন যে আমরা সার্টিফিকেটে বয়স সঠিক দেখেই নিয়োগ দিয়েছে। যদি কোন ঘুষ লেন দেন হয় তাহা সভাপতি জানতে পারে। তবে নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ ভাবে হয়েছে। যদি বয়সের সমস্যা থাকে তবে তার এমপিও হবে না। এমপিও না হলে বেতন হবে না। তারপরেও আমি ফাইল আবার দেখব।

নোবিপ্রবি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত নোবিপ্রবি প্রতিনিধি

নোবিপ্রবি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত নোবিপ্রবি প্রতিনিধি





নোবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ
মহামারী করোনাভাইরাস(কোভিড-১৯) দুর্যোগের কারণে সীমিত পরিসরে পালিত হয়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী- ২০২০।  

এ উপলক্ষে আজ বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম। পরে  উপাচার্যের নেতৃত্বে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয় এবং তা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শেষ হয়। 

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক নিবেদন শেষে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: দিদার-উল-আলম। বক্তৃতায় তিনি বলেন, ’জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক চেষ্টায় ২০০১ সালে মহান সংসদে এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আইন পাস হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে, তিনি না হলে  নোয়াখালীতে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা হতো না। আমরা তাই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের মধ্য দিয়ে সে অবদান কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সীমিত পরিসরে দিনটি উদযাপন করছে। করোনা মহামারীর মতো বৈশ্বিক এ দুর্যোগ যেন অচিরেই কেটে যায় এবং আমরা যেনো আগের মতো সকলে মিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে কাজ করে যেতে পারি- আজকের দিনে আমি এ আশাবাদ ব্যক্ত করি। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এদিনে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও ভৌত অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ সর্বাঙ্গিন কার্যক্রমের উত্তরোত্তর সাফল্য ও সম্মৃদ্ধি কামনা করি'। 

এসময় অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ফারুক উদ্দিন, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. আবুল হোসেন,  শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর, সাধারণ সম্পাদক মো. মজনুর রহমান, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন পলাশ প্রমুখ। এছাড়া অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালকবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তরের পরিচালক, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যানবৃন্দ, হলের প্রভোস্টবৃন্দ, শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দসহ ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় দিবস নিয়ে বিতর্ক: ২২ জুন পুনর্বহালের দাবিতে গণস্বাক্ষর 

এদিকে ১৫ জুলাইকে নয় ২২ জুনকেই বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পুনর্বহালের দাবিতে অনলাইনে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি সম্পন্ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনও একাত্মতা পোষণ করেছে তাদের সাথে। ২০০৬ সালের ২২ জুন মাত্র ১৮০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে দেশের ২৭ তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম শুরু করে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(নোবিপ্রবি)। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যেমন শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর দিনটিকেই বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পালন করে ঠিক তেমনি ২২ জুনকেই নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে ২০১৫ সাল পর্যন্ত পালন করা হয়। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার ২০০৮ সালের নিবার্চনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসার পরে বিশ্ববিদ্যালয়টির দ্বিতীয়  এবং তৃতীয় উপাচার্যের মেয়াদকালেও ২২ জুনকে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পালন করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে স্বার্থান্বেষী মহলের চক্রান্তের কারণে হঠাৎ করেই বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হয়ে যায় ১৫ জুলাই।

 এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম বলেন, 'ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম শুরুর দিনটিকেই বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পালন করা হয়। এখানেও তাই হওয়ার কথা। শিক্ষার্থীদের মতামত অনুযায়ী আলোচনা করে ২২ জুনকেই বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পুনর্বহালের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ঝিনাইদহে সরকারী যাকাত ফান্ডের চেক বিতরণ করলো ইসলামিক ফাউন্ডেশন

ঝিনাইদহে সরকারী যাকাত ফান্ডের চেক বিতরণ করলো ইসলামিক ফাউন্ডেশন






খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি 



ঝিনাইদহ ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে দুস্থ ও অসহায় ব্যক্তিদের মাঝে সরকারী যাকাত ফান্ডের চেক বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে ইসলামিক ফাউন্ডেশন উপ-পরিচালক মো: আব্দুল হামিদ খান এর সভাপতিত্বে চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) খান মো: আব্দুল্লা আল মামুন ও  ভুটিয়ারগাতী আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মো: আবুবকর ছিদ্দিক। 
২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের সরকারী যাকাত ফান্ডে আদায়কৃত ২য় কিস্তির টাকা ঝিনাইদহ জেলার ৬টি উপজেলায় ৬৭ জন দুস্থ অসহায় ব্যক্তিদের যাকাতের নির্ধারিত খাতে পুর্নবাসনের জন্য ২ লক্ষ ৬৩ হাজার টাকার  চেক দেওয়া হয়। 
এসময় প্রধান অতিথি এই মহামারী করোনাকালে দুস্থ ও অসহায় মানুষের পাশে থাকার জন্য সকল বিত্তবানদের অনুরোধ করেন এবং তাদের যাকাতের একটি অংশ সরকারী যাকাত ফান্ডে প্রদানের জন্যেও উদাত্ত আহবান জানান। 
মহামারী করোনায় যেসকল ব্যাক্তি ইন্তেকাল করেছেন তাঁদের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাদের সুস্থতা ও দেশ এবং জাতির কল্যান কামনা করে বিশেষ দোয়া করেন মাষ্টার ট্রেইনার মাওলানা মো: আবদুল্লাহ আল মামুন।

জীবননগর থানা পুলিশের হাতে স্বামী-স্ত্রী ৩৬ বোতল ফেনসিডিলসহ একটি ইজিবাইক আটক

জীবননগর থানা পুলিশের হাতে স্বামী-স্ত্রী ৩৬ বোতল ফেনসিডিলসহ একটি ইজিবাইক আটক


"

রফিকুল, জিবননগর, চুয়াডাঙ্গা :- জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি সাইফুল ইসলামের নির্দেশে এসআই ওসমান গনি,এএসআই কামরুজ্জামান,এএসআই হাবিব,এএসআই হুমায়ুন, সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে আজ ১৫/০৭/২০২০ ইং বুধবার সকাল ৭.৪৫ মিনিটে জীবননগর পূর্বাসা কাউন্টারে সামনে থেকে একটি ইজিবাইক থেকে ৩৬ বোতর ফেনসিডিলসহ স্বামী-স্ত্রী মাদক ব্যবসায়ী আটক। আটককৃত মাদক ব্যবসায়ী রাঙ্গিয়ারপোতা (দুয়ার পাড়া) গ্রামের মৃত বদর উদ্দিনের ছেলে, মো: আক্তার হোসেন (৪২), এবং তা স্ত্রী কে গ্রেফতার করেন। জীবননগর থানার আফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম জানাই, আসামীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

ইউওনো অফিসের নৈশ প্রহরী মফিদুল ইসলাম মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে

ইউওনো অফিসের নৈশ প্রহরী মফিদুল ইসলাম মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে




এম এ অয়ন মাগুরা প্রতিনিধি:-

মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলার  ইউএনও অফিসের নৈশ প্রহরী মফিদুল ইসলাম (৩৫) কিডনি ও লিভার জনিত রোগে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের ১ নং ইউনিটের ৫নং ওয়ার্ডের ৪ নং বেডে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। সে মহম্মদপুর উপজেলার পলাশবাড়ীয়া ইউনিয়নের মহিমানগর গ্রামের মৃত আব্দুল হকের পুত্র।পরিবার সূত্রে জানা যায় কিছুদিন পূর্বে তার পেটে হঠাৎ করে প্রচন্ড ব্যথা শুরু হয়। স্থানীয় চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় ভালো হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পরামর্শ প্রদান করেন। পরবর্তীতে আশংকাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতাল ভর্তি হওয়ার পরে বিভিন্ন টেস্ট করে জানা যায় সে কিডনি ও লিভার সংক্রান্ত জটিল রোগে ভুগছেন । বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা বলেন তার জরুরী এবং জটিল অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন। এমতাবস্থায় তার অস্ত্রোপাচার সম্পন্ন হয়েছে, কিন্তু প্রায় ৭২ ঘন্টা পরে জ্ঞান ফিরেছে। বর্তমানে ইনফেকশন হওয়ায় তার অবস্থা আবারও আশংকাজনক। এদিকে মফিদুলের স্ত্রী মুন্নী খাতুন জানান এখন পর্যন্ত চিকিৎসা খরচ বহন করতে প্রায় সর্বশান্ত হয়ে পড়েছি। পরবর্তীতে চিকিৎসা খরচ কিভাবে বহন করবো আল্লাহ পাক জানেন। অপারেশনের পরও ডাক্তাররা বলেছেন তার অবস্থা এখনও ভালো না। 
মফিদুলের স্ত্রী ও ৬ বছররের শিশুপুত্র মাহিম দেশবাসীর নিকট দোয়া কামনা করেছেন ।।

আজ মোংলায় সমাজ সেবা অফিসার সহ করোনায় আক্রান্ত ৯ জন।মোট আক্রান্ত ৩২

আজ মোংলায়  সমাজ সেবা অফিসার সহ করোনায় আক্রান্ত ৯ জন।মোট আক্রান্ত ৩২







মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা

  মোংলায় দিন দিন বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্য। আজ মোংলায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯ জন।মোংলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা মোট ৩২ জন।

এ সম্পর্কে মোংলা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জীবিতেশ বিশ্বাস বলেন মোংলায় আজ উপজেলার সমাজ সেবা কর্মকর্তা এস এম মাসুদ রানা(৩২) সহ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯ জন।অন্যানরা হলেন মোঃশরিফুল(৪৫)মোংলা ই,পি,জেড ,কুদ্দুস (৪৩)মোংলা ই,পি,জেড এ কর্মরত,মোঃফজলুল(৪২)মোংলা ই,পি,জেড  কর্মরত,জাফর(৪৫)মোংলা ই,পি,জেড এ কর্মরত,জামাল(৩৫)বুড়িরডাঙ্গা দিগরাজ,আবুল হোসেন(৪৭), শিকারীর মোড়,লাভলী(৩৪)শিকারীর মোড়,আজমিরা (৫১)মালগাজী।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে মোংলা উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার এস এম মাসুদ রানা করোনায় আক্রান্তের সত্যতা স্বীকার করেন।তিনি বলেন আমার গায়ে কয়েক দিন যাবৎ জ্বর থাকায় আমি করোনা টেস্ট করাই।আজ আমার ফলাফল পজেটিভ এসেছে।কিন্তু বর্তমানে আমি আগের থেকে অনেক সুস্থ আছি।জ্বর ও কমে গেছে।নমুনা দেয়ার পর থেকেই আমি কোয়ারান্টাইন এ আছি।

দিনাজপুর সেক্টরের ব্যবস্থাপনায় ও ২৯ বিজিবি‘র আয়োজনে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

দিনাজপুর সেক্টরের ব্যবস্থাপনায় ও ২৯ বিজিবি‘র আয়োজনে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ



মামুনুর রশিদ, দিনাজপুর প্রতিনিধি : করোনা ভাইরাসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ দিনাজপুরের  সীমান্তবর্তী এলাকার অসহায় ২ শতাধিক পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করলো ২৯ বিজিবি দিনাজপুর।
আজ বুধবার সকালে বিদ্যানন্দ ফাইন্ডেশনের সহায়তায় দিনাজপুর সদরের সুন্দরা বিওপি‘র দায়িত্বপূর্ন সীমান্তবর্তী এলাকায় দিনাজপুর সেক্টরের ব্যবস্থাপনায় ও ২৯ বিজিবি‘র আয়োজনে স্থানীয় দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন দিনাজপুর সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো: জহিরুল হক খাঁন। এসময় অনুষ্ঠানে বিজিবি‘র কোম্পানী কমান্ডার,বিওপি কমান্ডার ও ইউপি চেয়ারম্যান মো: জিয়াউর রহমান জিয়া ও স্থানীয় মেম্বারসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা হিসেবে চাল,ডাল,তেল,লবন ও সাবানসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বিতরন করা হয়।

দিনাজপুরে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন

দিনাজপুরে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন



 মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি ই-পাসপোর্ট অত্যন্ত নিরাপত্তা সম্বলিত একটি ব্যবস্থা। যে কারনে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশ এখন ই-পাসপোর্ট ব্যবহার শুরু করেছে। বিশ্বের ১১৯টি দেশের মতো আমরাও ১২০ নম্বরে যুক্ত হলাম।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে এবং কর্ম তৎপরতায় আমরা এ যাত্রা শুরু করতে পারলাম। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর পুত্র ও আইটি উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এতে আমরা সফল হয়েছি। খুব শীঘ্রই ই-পাসপোর্ট সেবা কার্যক্রম মানুষের দোরগড়ায় পৌছাবে। সেজন্য আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। এখন ই-পাসপোর্ট সম্পর্কে মানুষ না বুঝলেও ভবিষ্যতে এটি সবাই বুঝতে পারবে এবং এর সুফল সবাই ভোগ করবে। যারা এটি এখনও বুঝেন না, তাদের জন্য সুন্দর উদাহরন হলো- ব্যাংকের চেক বই এবং এটিএম কার্ড। চেক বইয়ে স্বাক্ষর দিয়ে ব্যাংক কর্মকর্তা ওই স্বাক্ষর যাচাইয়ের মাধ্যমে টাকা প্রদান করেন। আর এটিএম কার্ডে তা প্রয়োজন হয় না। সহজেই টাকা উত্তোলন করা যায়। কিছুটা সেরকমই আমাদের ই-পাসপোর্ট। তবে এর মধ্যে একটা চিপ থাকবে। যাতে আপনার সমস্ত ডাটা অন্তর্ভূক্ত থাকবে। এটি পলিমারের তৈরী একটি কার্ড। ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম সকলের নিকট পৌছে দিতে আমাদের সকলকে ঐকান্তিকভাবে কাজ করতে হবে।
১৫ জুলাই বুধবার সকালে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের ই-পাসপোর্ট ও সয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক উইং কমান্ডার মোঃ রকিবুল হাসান পিএসসি ইঞ্জি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। দিনাজপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের আয়োজনে তাদের নিজস্ব মিলনায়তনে দিনাজপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মরিয়ম খাতুনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরূপ বকশী বাচ্চু, দিনাজপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক মোঃ বিল্লাল হোসেন, ই-পাসপোর্টের প্রজেক্ট ম্যানেজার মোঃ মারুফ আলম প্রমুখ। সভায় বিভিন্ন স্তরের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গসহ নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

মুজিব বর্ষে বৃক্ষরোপন কর্মসুচী

মুজিব বর্ষে বৃক্ষরোপন কর্মসুচী



মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ মুজিব শত বার্ষিকী উপলক্ষে দিনাজপুরে যুবলীগের উদ্দেগে বৃক্ষরোপন কর্মসুচী চলমান রয়েছে । এরি ধারাবাহিকতায় চলমান কর্মসুচীর অংশ হিসেবে বুধবার সকালে শহরের ৯নং ওয়ার্ডে বিভিন্ন রাস্তার পাশ দিয়ে গাছের চারা রোপন করে যুবলীগ নেতৃবৃন্দরা ।কর্মসুচীতে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগ সভাপতি রাশেদ পারভেজ,শহর যুবলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আখতারুজ্জামান পলাশ,৯নং ওয়ার্ড যুবলীগ সাধারন সম্পাদক রয়েল,প্রচার সম্পাদক তারীক আজীজ আজবীর,যুবলীগ নেতা ফ্রান্সিস,মুন্না,মাজেদ,মিলনসহ আরো অনেকে ।এস সময় যুবলীগের সভাপতি রাশেদ পারভেজ বলেন প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার আহবানে সাড়া দিয়ে ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের নির্দেশনা বাস্তবায়নে আমাদের বৃক্ষরোপন কর্মসুচী অব্যাহত রয়েছে ।তিনি আরো বলেন জেলা,শহর ও ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রত্যেকটি ওয়ার্ড ওয়ার্ডে এ ধারা অব্যাহত রেখেছে দিনাজপুর যুবলীগ ।

ঝিনাইদহে ১৩ পুলিশ সহ রিকোর্ড ৪৬ জন করোনায় আক্রান্ত

ঝিনাইদহে ১৩ পুলিশ সহ  রিকোর্ড ৪৬ জন করোনায় আক্রান্ত





সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা( ঝিনাইদহ) সংবাদদাতাঃ

১৫_৭_২০২০ইংতারিখে  কোভিড-১৯ এর আপডেট তথ্য :

অফিসিয়াল ভাবে আমাদের কাছে কুষ্টিয়া_ল্যাব থেকে আরো ৯২টি_নমুনার_ফলাফল এসেছে যার ৫৯জন_নেগেটিভ এবং ৩৩জন_নতুন_আক্রান্ত।এবং যশোর_ল্যাবের ফলাফল অনুসারে কালিগন্জের বার বাজার পুলিশ ফাঁড়ির ১৩জন আক্রান্ত। 

মোট প্রাপ্ত ফলাফলের সংখ্যা=২৮৮৬
নেগেটিভ_২৩৫১
আক্রান্ত_৪৮৯+৩৩+১৩=৫৩৫

মোট_সংগৃহীত_নমুনার_সংখ্যা_৩১৭০

উপজেলা_ভিত্তিক_আক্রান্তের_মোট_সংখ্যা 
সদর_১৮৭+১৪=২০১
শৈলকূপা_৭০+২=৭২
হরিনাকুন্ডু_২১+৩=২৪
কালীগন্জ_১৫৮+১০+১৩=১৮১
কোটচাদপুর_২৮+২=৩০
মহেশপুর_২৫+২=২৭

আক্রান্তদের_এলাকা_সমুহ

সদর_১৪
১.সনাতনপুর
২.ব্যাপারী পাড়া
৩.পার্ক পাড়া
৪.পার্ক পাড়া
৫.মুক্তি ভিলা
৬.সোনালী ব্যাংক
৭.স্টেডিয়াম পাড়া
৮.স্টেডিয়াম পাড়া
৯.মহিলা কলেজ পাড়া
১০.হামদহ
১১.হামদহ
১২.আরাপপুর পশ্চিম পাড়া
১৩.২০০/১ শেরে বাংলা সড়ক
১৪.আদর্শ পাড়া

কালীগঞ্জ_২৩
১.শিবনগর
২.বারি নগর(যশোর) 
৩.হাজিপুর মব্দিয়া রায়গ্রাম
৪.ইসলামী ব্যাংক
৫.আড় পাড়া
৬.শিবনগর
৭.বালিয়া পাড়া
৮.চাপালি
৯.কলেজ পাড়া
১০.বড় শিমলা
১১.বার বাজার পুলিশ ফাঁড়ির মোট ১৩জন

শৈলকূপা_২
১. হুদাকুশবাড়িয়া
২. সাহাবাজার, নিত্যনন্দপুর

মহেশপুর_২
১. ধান্যহারিয়া, যাদবপুর
২. ধান্যহারিয়া, যাদবপুর

কোটচাঁদপুর_২
১. বাস স্ট্যান্ড
২. টি. এন. টি. পাড়া

হরিনাকুন্ডু_৩
১.কেষ্টপুর বিষখালি দৌউলতপুর
২.মকিমপুর
৩.কন্যাদাহ

​মোট_সুস্থতার_সংখ্যা_১৫২+২৩+২+১=১৭৮

উপজেলা_ভিত্তিক_সুস্থতার_সংখ্যা

সদর_৪৬
শৈলকূপা_১৬+২৩=৩৯
হরিনাকুন্ডু_৬
কোটচাঁদপুর_১৮+২=২০
কালীগন্জ_৫৬
মহেশপুর_১০+১=১১

কোভিড_১৯_হাসপাতালে_ভর্তি_রোগীর_সংখ্যা_২৩

মোট_মৃত্যুর_সংখ্যা_১১
সদর_৩
শৈলকূপা_৪
কালিগন্জ_৪

সিঙ্গাপুরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে গতকালকে একজনের মৃত্যুসহ মোট ২৭ জনের মৃত্যু

সিঙ্গাপুরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে গতকালকে একজনের মৃত্যুসহ মোট ২৭ জনের মৃত্যু





মোঃনাইম শেখ, সিঙ্গাপুর প্রতিনিধি 

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সিঙ্গাপুরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৪ জুলাই আরো ১৯৬ জন চিকিৎসা সেবা নিয়ে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন৷ এই নিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন ৪২৭৩৭ জন। 

তবে সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে, নতুন ৩৪৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। সিঙ্গাপুরে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬৬২৯ জন।

মঙ্গলবার আক্রান্তদের মধ্যে ১ জন সিঙ্গাপুরিয়ান, ৬ জন ওয়ার্ক পাশ হোল্ডার যারা ডরমিটরির বাহিরে বাস করেন, ২ জন বিদেশ ফেরত যারা স্টে হোম নোটিশে ছিলেন এবং ৩৩৮ জন ওয়ার্ক পাশ হোল্ডার যারা ডরমিটরিতে বাস করেন। 
গতকালকে ৬২ বছর বয়স্ক একজন সিঙ্গাপুরীয়ান নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি ৩০ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হয়ে সেনকাং হাসপাতালে ভর্তি হোন৷করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সিঙ্গাপুরে এই পর্যন্ত মোট ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

১৬১ জন এখনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন৷ ৩৫৫০ জনের অবস্থা ক্লিনিক্যালি ভালো কিন্তু পরীক্ষায় করোনাভাইরাস পজিটিভ হওয়ায় তাদেরকে অন্য রোগীদের কাছ থেকে আলাদা রাখা ও যত্নের জন্য অন্যত্র সরিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে৷

কুরবানীর ফজিলত ও তাৎপর্য

কুরবানীর ফজিলত ও তাৎপর্য





বিশেষ প্রতিনিধি দৌলতখান (ভোলা)

বিশ্বে মুসলমানরা বছরে দুটি উৎসব পালন করে থাকে।সর্ববৃহৎ এই দুটি উৎসবের মধ্যে একটি হলো ঈদুল ফিতর আর অন্য টি হলো ঈদুল আযহা।
ঈদুল আযহার সময়কার গুরুত্বপূর্ণ একটি ইবাদত হলো কুরবানী।কুরবানীর ব্যাপক ফযিলত ও তাৎপর্য কুরআন ও হাদীসে বিদ্যমান। 
কুরবানির ফজিলতের বিষয়ে একবার সাহাবায়ে কেরাম নবী করিম (সা.) কে  জিজ্ঞাস করেন- কোরবানি কী? নবী করিম (সা.) বলেন, কোরবানি হলো তোমাদের পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.) এর সুন্নত।
সাহাবীগন জিজ্ঞেস করলেন ইয়া রসুল আল্লাহ এতে আমাদের সওয়াব কী? নবী করিম (সা.) বলেন, কুরবানির পশুর প্রত্যেকটি পশমের বদলায় একটি করে সওয়াব রয়েছে।(মুসনাদে আহমাদ)।
হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী করিম (সা.) এরশাদ করেছেন, কুরবানির দিন কুরবানির চেয়ে উত্তম আমল নেই। কিয়ামের দিন কুরবানির পশুকে শিং, পশম ও খুরসহ পেশ করা হবে এবং কুরবানির জন্তুর রক্ত মাটিতে পড়ার আগেই আল্লাহ তায়ালার কাছে তা কবুল হয়ে যায়। তাই তোমরা খুব আনন্দ চিত্তে কুরবানি কর।
ক১০ জিলহজ ফজর থেকে ১২ জিলহজ সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক, সুস্থ মস্তিষ্ক, মুকিম ব্যক্তির কাছে নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকে অর্থাৎ স্বীয় হাজাতে আসলিয়্যাহ বা মৌলিক প্রয়োজন (পানাহার, বাসস্থান, উপার্জনের উপকরণ ইত্যাদি) ছাড়া অতিরিক্ত এ পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়, যা সাড়ে সাত তোলা স্বর্ণ বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রৌপ্যের মূল্যের সমপরিমাণ (টাকার অঙ্কে আনুমানিক ৫৫ হাজার টাকা) হয়, সে ব্যক্তির ওপর কুরবানি ওয়াজিব।

তবে  পাগল ব্যক্তির কাছে নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকলেও তার ওপর কোরবানি ওয়াজিব হবে না। এছাড়া মুসাফিরের ওপর কুরবানি ওয়াজিব নয়। মুসাফির ব্যক্তি কুরবানির দিনগুলো অতিবাহিত হওয়ার পর যদি বাড়ি ফিরে আসে, তাহলেও তার ওপর কোরবানির কাজা করা লাগবে না। প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য নিজের পক্ষ থেকে কুরবানি করা ওয়াজিব। তার স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে ও বাবা-মায়ের পক্ষ থেকে কুরবানি করা ওয়াজিব নয়।

লেখক,মোঃ আওলাদ হোসেন 
বিএসএস অনার্স, এমএমএস (রাষ্ট্রবিজ্ঞান),
ঢাকা সরকারি কলেজ, অধিভুক্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় 
এম এ,কামিল (ফিকাহ)
ভোলা দারুল হাদীস কামিল মাদরাসা। 
সহকারী শিক্ষক 
ছাকিনা আদর্শ একাডেমি মাধ্যমিক বিদ্যালয়।
দৌলতখান, ভোলা।

আশায় হতাশায় দিন দিন দারুল আরকাম মাদ্রাসা শিক্ষক ও শিক্ষিকাগন দীর্ঘদিন যাবত পাচ্ছে না বেতন ভাতা

আশায় হতাশায় দিন দিন দারুল আরকাম মাদ্রাসা শিক্ষক ও শিক্ষিকাগন দীর্ঘদিন যাবত পাচ্ছে না বেতন ভাতা





আব্দুর রাজ্জাক, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে ইসলাম প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালে ২৩টি ধারার মাধ্যমে বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ২০১৭ সালে সারাদেশে ৫০৫টি উপজেলায় সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের কথা চিন্তা করে কওমী, আলিয়া ও সাধারণ শিক্ষা ধারায় ১০১০টি দারুল আরকাম মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত করেন। প্রতিষ্ঠার মাত্র ০৩ বছরের মাথায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনর ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের চরম অবহেলা এবং ( দারুল আরকাম মাদ্রাসা)এক্ষেত্রে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দেওয়া হয় সংশ্লিষ্ট ২০২০ জন উচ্চ শিক্ষিত কওমী ও আলিয়ার আলেম (চলমান শিক্ষক) দুই লক্ষাধিক ছাত্র? ছাত্রী অভিভাবক জমিদাতা সদস্য ও হাজার হাজার ফলাফল প্রার্থী চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে ভুক্তভোগীরা ০৭মাস যাবৎ ইসলামিক ফাউন্ডেশন ওধর্ম মন্ত্রণালয়ের উধর্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টির ব্যাপারে সমাধান চেয়ে কোনো সুরাহা না পেয়ে চরমভাবে হতাশ হয়। ১০১০টি দারুল আরকাম মাদ্রাসার চলমান শিক্ষক শিক্ষিকা ছাত্র /ছাত্রী অভিভাবক জমিদাতা সদস্য ম্যানেজিং কমিটি এবং হাজার হাজার ফলাফল প্রার্থীদের পক্ষ থেকে দারুল আরকাম মাদ্রাসার চলমান শিক্ষকরা গত ৬ জুলাই ২০২০খ্রিঃ রোজ সোমবার দারুল আরকাম মাদ্রাসার চলমান শিক্ষকরা ৬দফা দাবিতে দেশের ৬৪জেলার জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।মাননীয় ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ সাহেবের মৃত্যুর পরে দারুল আরকাম মাদ্রাসার২০২০ জন উচ্চ শিক্ষিত তরুণ আলেম শিক্ষকসহ প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকল চরমভাবে হতাশা হয়ে পরেছেন। প্রকল্পটির অবকাঠামো সমস্যার সহ ফলাফল প্রার্থীদের ফলাফল প্রকাশের মাধ্যমে শিক্ষক সংকটসহ সকল সমস্যা দূর হয় এ ব্যাপারে ভুক্তভোগীরা কওমী আলেমদের অভিভাবক আল্লামা শফী সাহেব ইসলামিক ফাউন্ডেশন সকল বোর্ড অফ গর্ভনর ধর্ম মন্ত্রণালয়ের মাননীয় সচিব মহোদয় পরিকল্পনা কমিশন অর্থ মন্ত্রণালয় ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সমদৃষ্টি আকষণ ও একান্তই নিজস্ব হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এবং সকল দারুল আরকাম মাদ্রাসার শিক্ষক্গনের  ও মানিকগঞ্জ জেলার সকল শিক্ষকগন, তাদের আশায় এখন হতাশা।

কয়রায় অষ্টম শ্রেণি পাশেই দন্ত চিকিৎসক! প্রতারিত হচ্ছে সাধারন মানুষ

কয়রায় অষ্টম শ্রেণি পাশেই দন্ত চিকিৎসক! প্রতারিত হচ্ছে সাধারন মানুষ




কয়রা প্রতিনিধি :-  
শিক্ষগত যোগ্যতার ন্যুনতম সনদ ছাড়াই সব ধরনের দাঁতের চিকিৎসা দিচ্ছেন মোস্তফা কামাল নামে এক ব্যাক্তি। তিনি খুলনার কয়রা উপজেলা সদরে চেম্বার খুলে এমন প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।  
অসৎ দন্ত চিকিৎসকদের দৌরাত্ম্যে দিশেহারা উপজেলাবাসী। উপজেলার প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষ কোনো ধরনের যাচাই বাছাই না করেই এসব চিকিৎসকদের শরণাপন্ন হন। নামে বেনামে বিভিন্ন রকমের রঙিন ব্যানার ও সাইনবোর্ড টাঙিয়ে এবং সুসজ্জিত চেম্বার বসিয়ে এরা এ অঞ্চলের মানুষের কাছ থেকে অবৈধভাবে হাতিয়ে নিচ্ছেন কাড়ি কাড়ি টাকা। তাদের সরকারি কোনো অনুমোদন থাক বা না থাক কয়েক বছরের হাতুড়ে অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়েই চিকিৎসা দিয়ে আসছেন বছরের পর বছর। নামধারী চিকিৎসকরা আবার একাধিক চেম্বার খুলে রমরমা ব্যবসা চালাচ্ছেন। তাদের কোনো সরকারি সনদ, রেজিস্ট্রেশন,বা নিজেদের কোন প্রাতিষ্ঠানিক সনদ পত্র না থাকলেও তারা চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত।
অনুসন্ধানে দেখা যায়, খুলনার কয়রা উপজেলায় নামে বেনামে  একাধিক দন্তরোগের অপচিকিৎসা কেন্দ্র গড়ে উঠেছে। যাদের বেশীর ভাগই নাম সর্বস্ব। তবে হাতুড়ে হলেই বা কি এদের চেম্বারে রয়েছে বেশ সুসজ্জিত অত্যাধুনিক যন্ত্রসামগ্রী। এদের কাজ হচ্ছে দাঁত তোলা, দাঁতে পুটিং করা, দাঁত বাঁধানো, দাঁত স্কিলিং করা, ক্যাপ লাগানো, দাঁতে রুটক্যানেল করাসহ দাঁত ওয়াশ করা। এরা আবার একেক কাজের জন্য একেক রকমের বিল হাঁকায় রোগীদের কাছ থেকে। রোগী যদি নিতান্ত গরীবও হয় সেক্ষেত্রেও ওই একই বিল রাখা হয় বলে জানা গেছে। এসব ডাক্তারদের দামি আসবাবপত্র অথবা আকর্ষণীয় একটি চেম্বার থাকলেও নেই শুধু তাদের অনুমোদিত ডিগ্রী । পড়াশোনার দৌড় তেমন না হলেও তারা নামের আগে ডাক্তার,অভিজ্ঞ চিকিৎসক এবং  নামের পরে নানা পদবী লাগিয়ে রেখেছেন। কেউ কেউ কয়েক বার জরিমানার শিকার হয়েছেন। তার পরে কৌশলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে পুনরায় প্রতারণা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা যায়, চিকিৎসকের সহকারী হিসেবে কাজ করেই হয়ে গেছেন দন্ত চিকিৎসক।প্রাতিষ্ঠানিক বিডিএস ডিগ্রী নেই। চেম্বার সাজিয়ে নিজেই শুরু করেন অবৈধ ব্যবসা। রোগী দেখতে নিয়ে থাকেন চড়া ফি। দাঁতের জটিল অপারেশনেও অংশ নেন। তার চেম্বারে অসংখ্য রোগীকে চিকিৎসা দিচ্ছেন তিনি। রয়েছে তার বিরুদ্ধে অপচিকিৎসা দেওয়ার অভিযোগ,  কিছু দিন আগে আর কার্ড ও প্যাডে নামের আগে বসিয়েছিলেন চিকিৎসক  শব্দটি ও পরে বসিয়েছিলেন নানা ডিগ্রী ধারী পদবী ।কয়রা সদরের মেইন রোড সংলগ্ন  তরফদার মার্কেটে সাগর  ডেন্টাল কেয়ার নামের মালিক ও চিকিৎসক তিনি।

স্থানীয় জনগণ ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়,মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ এর অধিনে নিবন্ধন ব্যতীত ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কোন ডিগ্রী বা ডিপ্লোমা না থাকা স্বত্ত্বেও দন্ত চিকিৎসক হিসাবে প্রাকটিস করে প্রতারণার অপরাধ  করাকালে গত গত বছরের ৭ মার্চ দুপুরে মোবাইল কোর্টে ধৃত হন। এসময় সাগর ডেন্টাল কেয়ার কথিত দন্ত  চিকিৎসক মোস্তফা কামালকে (৪৮) দোষী সাব্যস্ত করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শিমুল কুমার সাহা।পাশাপাশি ব্যবহার যোগ্য ঔষধ সামগ্রী ও চিকিৎসা যন্ত্রপাতি জব্দ করা হয়। কিন্তু আবার কিছদিন পর কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে  ভিজিটিং কার্ড, প্যার্ড ও সাইন বোর্ডে চিকিৎসক মুছে আবারো প্রতারণা করে যাচ্ছে কথিত দন্তচিকিৎসক মোস্তফা কামাল।
কয়রা সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা রেজাউল করিম বলেন, আমার মেয়ের দাঁতের ভুল চিকিৎসা করেন তিনি। পরে খুলনা শহরে নিয়ে চিকিৎসা করাতে প্রায় ৫০ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, প্রতারক মোস্তফা কামালের কোন সংশ্লিষ্ট ডিগ্রী বা শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই।প্রকৃত পক্ষে তিনি অষ্টম শ্রেণী পাশ। দন্ত চিকিৎসার ওপর ও প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান না থাকা সত্বেও দন্ত চিকিৎসার নামে মানুষের সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা  করে আসছে। ভুল চিকিৎসায় অনেকের অনেক ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তারা। ভুক্তভোগীসহ সচেতন এলাকাবাসী অবিলম্বে উল্লেখিত ভুয়া দন্ত চিকিৎসক মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানিয়েছে।

এব্যাপারে সাগর ডেন্টাল কেয়ারের মালিক কথিত দন্ত চিকিৎসক মোস্তাফা কামালের কাছে জানতে তিনি বলেন, 
আমার কাছে কতৃপক্ষের লিখিত কপি আছে ও অন্যরা যেভাবে চিকিৎসা প্রদান করছেন সে অনুযায়ী আমি চিকিৎসা প্রদান করছি। এছাড়া তিনি শিক্ষাগত সদন পত্র নিয়ে কোন সদোত্তর দিতে পারেন নি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুদীব বালা বলেন,আমি এখানে নতুন এসে জানতে পেরেছি  এ অঞ্চলে ভুয়া বেশ কিছু ডাক্তার রয়েছেন যাদের (বি.এম.ডি.সি) কোনো অনুমোদন নেই। অথচ তারা চেম্বারে বসে অনায়াসে চিকিৎসাসেবা প্রদান করছে। ঐসকল ভুয়া দন্ত চিকিৎসকদের ব্যাপারে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে তিনি এও বলেন যে, এরকম কোনো অভিযোগ আমার কাছে আসেনি যদি আসে তাহলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও প্রশাসন মিলে বিষয়টির সুরাহা করব।

এ ব্যাপারে খুলনা সিভিল সার্জন ডা: সুজাত আহম্মেদ এর  সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, যারা পল্লী চিকিৎসক তারা মাত্র প্রাথমিক চিকিৎসাটা দিতে পারেন। তবে তাদের চেম্বার, ক্লিনিক বা কেয়ার হোম করে কোন যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে পারবেন না। তারা যা করছেন সম্পূর্ণ অবৈধ আমি অচিরেই তাদের বিরুদ্ধে অভিযানে নামবো।

বহুল আলোচিত করোনার রিপোর্ট জালিয়াতি সাহেদ সাতক্ষীরা সীমান্তে গ্রেফতার

বহুল আলোচিত করোনার রিপোর্ট জালিয়াতি সাহেদ সাতক্ষীরা সীমান্তে গ্রেফতার




আজহারুল ইসলাম সাদী, জেলা প্রতিনিধিঃ অবশেষে করোনা ভাইরাস এর রিপোর্ট জালিয়াতি  মামলায় বহুল আলোচিত রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদকে অবৈধ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।
জানা গেছে আজ বুধবার(১৫ জুলাই ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলা সীমান্ত এলাকা থেকে  র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, সাতক্ষীরা থেকে তাকে ঢাকায় আনার জন্য র‌্যাবের একটি বিশেষ টিম সাতক্ষীরা যাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, গত ৬ জুলাই র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। পরীক্ষা ছাড়াই করোনার সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা ও অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আসছিল তারা। র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত অন্তত ছয় হাজার ভুয়া করোনা পরীক্ষার সনদ পাওয়ার প্রমাণ পায়। একদিন পর গত ৭ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে র‌্যাব রিজেন্ট হাসপাতাল ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয়। রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে ওই দিনই উত্তরা পশ্চিম থানায় নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়। এরপর থেকে মো. সাহেদ পলাতক ছিলেন,
তাকে হেলিকপ্টার গোগে ঢাকায় আনার প্রস্ততি নেয়া হচ্ছে।

পারিবারিক বিরোধের জের ধরে হামলার শিকার জবি শিক্ষার্থী

পারিবারিক বিরোধের জের ধরে হামলার শিকার জবি শিক্ষার্থী





জবি প্রতিনিধিঃ 
পারিবারিক বিরোধের জের ধরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর ১৫ তম ব্যাচের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী শাহারিরার আফরিদ শাহীন ও তার আরেক ভাই সহ তার পিতা খালেক ঢালীর উপর হামলা করে এলাকার বিএনপির কিছু নেতা ও চাঁদাবাজরা। আহত শাহীন ও তাঁর ভাই এবং তাঁর বাবা শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন। 


পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শাহীনের দাদার সম্পত্তিতে বিদ্যমান অংশ যা কাকাদের প্রাপ্য ছিল তা অন্য একজনের কাছে  বিক্রি করে দেন শাহীনের কাকারা। দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি যে সম্পত্তি কেনা সেই লোক ভুক্তভোগী শাহীনের বাবার অংশ ও অবৈধভাবে দাবী করে বসে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে এক পর্যায়ে এলাকার বিএনপির কিছু নেতা-আবুল খায়ের মাতবর, মিনা তালুকদার ও নজরুল তালুকদার সহ অনেকেই জবি শিক্ষার্থী শাহীনের পরিবারের উপর হামলা করে।


এ ব্যাপারে জবি শিক্ষার্থী শাহীন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমরা আমাদের দাদার সম্পত্তির পাওনা অংশ ড্রেজার দিয়ে ভরাট করার পরিকল্পনা করি কিন্তু সেখানে এলাকার বিএনপির কিছু নেতা ও চাঁদাবাজ আমাদের কাছে ২ লক্ষ টাকা দাবী করে এবং বলে যে টাকা না দেওয়া হলে জমি ভরাট করতে দেওয়া হবে না। এছাড়াও নানান হুমকি ধামকি দিতে থাকে তাঁরা। আমরা তাদেরকে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা ড্রেজারের পাইপ ভেঙ্গে দেয় এবং আমিসহ আমার ভাই ও বাবাকে দা এবং রড দিয়ে মাথায় এবং শরীরে আঘাত করে। আমি ও আমার পরিবার এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।অনতিবিলম্বে অপরাধীদেরকে শাস্তির আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।


এ বিষয় নিয়ে শরীয়তপুর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আসলাম এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং আমরা অপরাধীদের খুব দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসব।