প্রধানমন্ত্রীর চাচী রিজিয়া নাসের এর মৃত্যুতে এমপি নাসির উদ্দিনের শোক প্রকাশ

 প্রধানমন্ত্রীর চাচী রিজিয়া নাসের এর মৃত্যুতে এমপি নাসির উদ্দিনের শোক প্রকাশ

 


স্টাফ রিপোর্টারঃ প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র চাচী  বঙ্গবন্ধু পরিবারের একমাত্র অভিভাবক শহীদ শেখ আবু নাসেরে'র সহধর্মিনী,  এবং জননেতা শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি, শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল এমপি, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সোহেল এর আম্মা ও শেখ তন্ময়ের দাদী রিজিয়া নাসের এর মৃত্যুতে যশোর -২ ( চৌগাছা - ঝিকরগাছা)  আসনের  এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল অবঃ অধ্যাপক ডাক্তার মোঃ নাসির উদ্দিনের শোক প্রকাশ।তিনি তার শোক বার্তায় বলেন "তিনি ( রিজিয়া নাসের) ছিলেন রত্নগর্ভা,আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কান্ডারী,আওয়ামী পরিবারের নির্ভরযোগ্য অভিভাবক, তার মৃত্যুতে আমি শোকাহত। আমি তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করি,আল্লাহ যেন তাকে বেহেশত নসিব করেন।"

অপর দিকে তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে  বিবৃতি দিয়েছেন ঝিকরগাছা উপজেলার ১নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান।

সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন যশোর জেলা শাখা কমিটি গঠন মঙ্গলবার

সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন যশোর জেলা শাখা কমিটি গঠন মঙ্গলবার

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন যশোর জেলা শাখা কমিটি গঠন হবে আগামী মঙ্গলবার বিকেল চারটায় ঝিকরগাছা পোস্ট অফিসের পাশে অফিসে উদ্ভাবক মিজান ভাই সবাই থাকবে আপনার দাওয়াত রইলো অবশ্যই উপস্থিত থাকবেন।

প্রধানমন্ত্রীর চাচী রিজিয়া নাসের আর নেই

প্রধানমন্ত্রীর চাচী রিজিয়া নাসের আর নেই



তুহিন রানা (আব্রাহাম) ; খুলনা নগর প্রতিনিধিঃরাজধানীর এভারকেয়ার হসপিটালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।বঙ্গবন্ধু পরিবারের একমাত্র অভিভাবক শহীদ শেখ আবু নাসেরে'র সহধর্মিনী, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একমাত্র চাচি এবং জননেতা শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি, শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল এমপি, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সোহেল এর আম্মা ও শেখ তন্ময়ের দাদী বেগম রিজিয়া নাসের রাত ৯ টায় মারা গেছেন।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) দুপুরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে লাগলে তাকে রাজধানীর এভারকেয়ারের লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। চলতি মাসের ৫ নভেম্বর বার্ধক্যজনিত জনিত কারণে রিজিয়া নাসেরকে এভারকেয়ার হসপিটালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তির দুই দিন পর তার করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। তারপর থেকেই চিকিৎসা চলছিল। আজ সোমবার দুপুরে শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছিল।

কয়রা শাকবাড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজে যৌন হয়রানী প্রতিরোধে কমিটি গঠন

 কয়রা শাকবাড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজে যৌন হয়রানী প্রতিরোধে কমিটি গঠন


কয়রা(খুলনা)প্রতিনিধিঃ কয়রা উপজেলা জলবায়ু পরিষদের উদ্যোগে কয়রা শাকবাড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজে যৌন হয়রানী প্রতিরোধে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সোমবার বেলা ১১ টায় বিদ্যালয়ের হলরুমে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ আবু বকর ছিদ্দিকীর সভাপতিত্বে ও সিএসআরএল প্রকল্পের উপজেলা ফিল্ড অফিসার নিরাপদ মুন্ডার পরিচালনায় এ উপলক্ষে আলোচনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা মহিলা অধিদপ্তরের আবু সাঈদ, জলবায়ু পরিষদের সদস্য প্রভাষক বিদেশ রঞ্জন মৃধা, সমাজ সেবক রবিউল ইসলাম রবিন, সাংবাদিক রিয়াছাদ আলী, প্রধান শিক্ষক এস এম নুরুল আমিন নাহিন, এস এম গোলাম রসুল, ইউপি সদস্য সুলতানা মিলি সহকারি প্রধান শিক্ষক নারায়ন চন্দ্র মন্ডল, শিক্ষক অরবিন্দ কুমার মন্ডল, মুর্শিদা আক্তার, কৃঞ্চাদাস, পরিত্রাণ ওয়াই মুভস প্রকল্পের মো. আলাউদ্দিন প্রমুখ।

আলোচনা শেষে আবু বকর ছিদ্দিকীকে সার্বিক দায়িত্বে ও কৃঞ্চাদাসকে আয়বায়ক করে ৭ সদস্য বিশিষ্ঠ যৌন হয়রানী প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়।

নাটোর বড়াইগ্রামে বনিক সমিতির সভাপতির কুলখানি অনুষ্ঠিত

 নাটোর বড়াইগ্রামে বনিক সমিতির সভাপতির কুলখানি অনুষ্ঠিত




রাজশাহী ব্যুরোঃনাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া পৌর শহরের কালিকাপুর নতুন বাজার বনিক সমিতি, মহিষভাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ও বেড়পাড়া খানকাহ্ শরীফের সভাপতি,  বিশিষ্ট চাউল ব্যাবসায়ী ও বনপাড়া পৌর মেয়র কে,এম জাকির হোসেনের জ্যাঠাতো বড় ভাই শরিফুল ইসলাম (৫৯) এর কুলখানির অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে । মরহুম শরিফুল ইসলাম মহামারী করোনায় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকাস্হ প্রাইভেট হাসপাতাল ল্যাব এইড এ ভর্তি করালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি গত ২৫ আগষ্ট মারা যান ।

আজ ১৬ই নভেম্বর সোমবার পৌর শহরের মহিষভাঙ্গা গ্রামে তার নিজ বাসভবনে এই কুলখানি অনুষ্ঠিত হয় । মহামারী করোনার প্রাদুর্ভাবের কারনে সম্পূর্ণ রূপে স্বাস্হ্য বিধি মেনে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে যোগ দেন কয়েক হাজার ধর্মপ্রান মুসলমান সহ অন্যান্য ধর্মের হিতৈষী ব্যাক্তিরা ।এ ছাড়া এই কুলখানি অনুষ্ঠানে মরহুমের মাগফেরাত কামনায় উপস্হিত ছিলেন স্হানীয় সাংসদ ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল কুদ্দুস, উপজেলা চেয়ারম্যান ডাঃমোঃ সিদ্দীকুর রহমান পাটোয়ারী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আঃ কুদ্দুস মিয়াজী, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মিজানুর রহমান মিজান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া আক্তার কলি, বনপাড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার শফিকুল ইসলাম, উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীরা, মুক্তিযোদ্ধাগন, মরহুমের কাছের ও দুরের আত্বীয়স্বজন, উপজেলার বিভিন্ন স্তরের ব্যবসায়ীগন, বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিক গন ও সুধীজনেরা । অনুষ্ঠানটির সার্বিক তত্ত্বাবধান করেন,পৌর মেয়র কে,এম জাকির হোসেন, অধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা সহ মরহুমের আত্বীয় স্বজনেরা

২০২১ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা হবে-শিক্ষামন্ত্রী

 ২০২১ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা হবে-শিক্ষামন্ত্রী

রিয়াজুল করিম রিজভীঃ আগামী বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) এবং উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষা বাদ হওয়ার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমলে শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষে নিয়ে ক্লাস করিয়ে পরীক্ষা নেয়া হবে। পরীক্ষার আগের তিন মাস এসব শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

রবিবার রাতে গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এ বছরের এসএসসি শিক্ষার্থীরা ঠিকভাবে পরীক্ষা দিয়ে ফলাফল পেয়েছে। আর এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিল কিন্তু তারা পরীক্ষাটা দিতে পারেনি। তাই আমরা তাদেরকে আগের পরীক্ষার ভিত্তিতে পাস দিচ্ছি।মন্ত্রী বলেন, আগামী বছর যারা এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষা দেবে; তারা কিন্তু পরীক্ষার আগের একটি বছর নিয়মিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে ক্লাস করার সুযোগ পায়নি। তাদেরকে আমরা যদিও অনলাইনে ক্লাস করিয়েছি, কিন্তু আমরা সবার কাছে পৌঁছাতে পারিনি। যাদের কাছে পৌঁছাতে পারিনি তারা পরীক্ষা দিতে পারবে না এটা হওয়া উচিৎ নয়।

শিক্ষার্থীদের নিয়ে আক্ষেপের কথা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমাদের একটা চিন্তা ছিল আমরা সীমিত আকারে হলেও দশম শ্রেণী এবং দ্বাদশ শ্রেণীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়ে এসে অন্তত তিন মাস ক্লাস করাবো। তাহলেও আমরা একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে তাদের পরীক্ষাটা নিতে পারবো। কিন্তু পরিস্থিতির কারণে নভেম্বর-ডিসেম্বরেও এটা করা যাচ্ছে না। এটি যদি আমরা এখনই শুরু করতে পারতাম তাহলে ঠিক সময়েই এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষাগুলো নেয়া যেতো।

আগামী বছরের এসএসসি এবং এইচএসসি নিয়ে পরিকল্পনার কথা জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, তুলনামূলকভাবে ডিসেম্বর এবং জানুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত শীতের প্রকোপটা বেশি থাকে। কাজেই জানুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত আমাদের দেখতে হবে; পরিস্থিতিটা কোন দিকে যাচ্ছে। তারপরেই সুবিধাজনক হলে আমরা ওই তিন মাসের যে সিদ্ধান্ত সেটা শুরু করবো

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যৈষ্ঠ কর্মকর্তাদের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ঘুরে দেখালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

 পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যৈষ্ঠ কর্মকর্তাদের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ঘুরে দেখালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

নিউজ ডেস্কঃপররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিদর্শন করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ.কে. আব্দুল মোমেন। গত শুক্র ও শনিবার পররাষ্ট্রসচিবসহ মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালকের সমমান ও তদুর্ধ্ব কর্মকর্তাগণ পরিদর্শন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন। পরিদর্শনকালে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান এবং এ মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নের সাথে ওৎপ্রোতভাবে সম্পৃক্ত। বাংলাদেশের ভিয়েনা ও মস্কো মিশনের মাধ্যমে এ প্রকল্পের বিষয়ে আইএইএ ও রাশিয়ার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। এ প্রকল্পের বাস্তবায়ন, নিরাপত্তা রক্ষাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে যোগাযোগ রক্ষার সুবিধার্থে বাংলাদেশি কূটনীতিক ও সম্ভাব্য রাষ্ট্রদূতদের জন্য সরেজমিনে এ পরিদর্শনের আয়োজন করা হয়। এছাড়া পারমাণবিক শক্তিকে ইতিবাচক কাজে ব্যবহারের বিষয়টি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তুলে ধরার সুবিধার্থে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের পরিদর্শনের এ আয়োজন করা হয়।

এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বাংলাদেশের গর্ব এবং এদেশের ইতিহাসের অংশ হিসেবে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এটা আমাদের জন্য একটা বড় অর্জন। পারমাণবিক শক্তিকে আমরা নেতিবাচক কাজে ব্যবহারের বিপক্ষে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ এ বিষয়ে অত্যন্ত সোচ্চার এবং পৃথিবীর মধ্যে এটা অন্যতম দৃষ্টান্ত। তবে মানুষের ভালো কাজে এ প্রযুক্তি ব্যবহারের বিষয়ে আমরা সবসময় সমর্থন করি। 

বাংলাদেশ পারমাণবিক শক্তি কেবল শান্তিপূর্ণ কাজে ব্যবহার করতে চায়। পারমাণবিক শক্তি ভালোকাজে ব্যবহারের এ প্রকল্প বিশ্বে আমাদের ভাবমূর্তি আরো বৃদ্ধি করবে।পরিদর্শন শেষে এ প্রকল্পের অগ্রগতিসহ সার্বিক কার্যক্রম উপস্থাপন করেন প্রকল্পের রাশিয়ার নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প পরিচালক। প্রকল্পের কাজের অগ্রগতিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং নির্মাণ প্রতিষ্ঠানকে ধন্যবাদ জানান। যথাসময়ে এ প্রকল্পের কাজসম্পন্ন হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। 

এসময় ড. মোমেন বলেন,  রাশিয়া সবসময় বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠবন্ধু। স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালীন বাংলাদেশের পক্ষে তিনবার জাতিসংঘে ভেটো প্রদানসহ বাংলাদেশের সার্বিক সহযোগিতা করে রাশিয়া। এসময় বাংলাদেশের জ্বালানি খাতসহ ব্লু ইকোনোমিতে রাশিয়ার বিনিয়োগ ও সহায়তা কামনা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন,  এক্ষেত্রে রাশিয়ার উন্নত প্রযুক্তি রয়েছে এবং সেদেশের অংশগ্রহণ বাংলাদেশের জন্য সহায়ক হবে। 

এসময় জানানো হয়, এ প্রকল্পে কর্মরত প্রায় ১৬ হাজার জনবলের মধ্যে প্রায় ১৪ হাজার বাংলাদেশি অত্যন্ত দক্ষতার সাথে কাজ করছে।পরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে উত্তরা গণভবন সফর করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এসময় তিনি বলেন, এ বাড়িকে উত্তরা গণভবনে রূপান্তর করে বঙ্গবন্ধু উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্য ও স্মৃতিকে ধরে রেখেছেন।

সরকারী অর্থ আত্মসাৎ ও অসদাচরণের দায়ে লোহাগড়ার পিআইও সামরিক বরখাস্ত

 সরকারী অর্থ আত্মসাৎ ও অসদাচরণের দায়ে লোহাগড়ার পিআইও সামরিক বরখাস্ত



মো: আজিজুর বিশ্বাস স্টাফ রিপোর্টারঃনড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এস. এম. এ করিমকে সরকারী অর্থ আত্মসাৎ ও অসদাচরণের দায়ে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) বিকালে ত্রান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয়ের উপসচিব লুৎফুর নাহার স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সরকারী কর্মচারী বিধিমালা-২০১৮ এর বিধি মোতাবেক ওই কর্মকর্তাকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয় এবং একই সাথে তাকে অত্র দপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে, লোহাগড়া উপজেলায় ২০১৮-১৯  অর্থবছরে ব্রিজ নির্মান খাতের ১৬টি প্রকল্পের সিডিউল বিক্রি কম দেখিয়ে ওই কর্মকর্তা সরকারী সাত লক্ষ একান্ন হাজার পাঁচশত টাকা আত্মসাৎ করেন। এছাড়া তিনি সেবা প্রত্যাশীদের সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে অসদাচরণ করেন। এসব বিষয়ে গত ৯ নভেম্বর নড়াইল জেলা প্রশাসক এর নিকট লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন ।লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোসলিনা পারভীন ওই কর্মকর্তার সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

"ফুলতারা ইনফরমেশন এন্ড হেল্প সেন্টার" গ্রুপের উদ্যোগে কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ

"ফুলতারা ইনফরমেশন এন্ড হেল্প সেন্টার" গ্রুপের উদ্যোগে কুইজ প্রতিযোগিতায়  বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ


নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আর.জে মিজানুর রহমান ইমনঃ ময়মনসিংহের ফুলপুর পৌরসভার আমুয়াকান্দা বাজার সংলগ্ন পয়ারী রোড হাজী মজিবুর মার্কেটে, জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন কার্যালয়ে আজ ১৬ নভেম্বর রোজ সোমবার বিকেলে "ফুলতারা ইনফরমেশন এন্ড হেল্প সেন্টার" গ্রুপের উদ্যোগে কুইজ প্রতিযোগীয় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান হয়েছে । উক্ত আয়োজিত পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, তারাকান্দা বণিক সমিতির সভাপতি ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি নুরুজ্জামান সরকার বকুল, জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন ফুলপুর শাখার সভাপতি তাসনোভা নাছরিন নিশু ও সাধারন সম্পাদক তপু রায়হান রাব্বি । তাক্ওয়া অসহায় সেবা সংস্থার সাংগঠনিক সম্পাদক নূর হোসাইন, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক সাকিব মিয়া, আইসিটি বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান সুজন, সম্মানিত সদস্য শাহাব উদ্দিন,তারাকান্দা উপজেলা যুবলীগের সদস্য আলামিন সরকার লিটন, স্বেচ্ছাসেবক তিতুমীর, জাহাঙ্গীর আলম, প্রমুখ ।ফুলতারা ইনফরমেশন এন্ড হেল্প সেন্টারের, দুবাই প্রবাসী রানা শেখ ও জহির মাহমুদের পরিচালনায় এ অনলাইন গ্রুপ । 

কুইজ প্রতিযোগিতায় ৩য় রাউন্ডে ৩য় পর্যায়ে আয়োজিত অপুষ্ঠানে প্রথম স্থান অধিকার করেন আরিফুল ইসলাম, ২য় বিজয়ী শরীফ আকন্দ ও ৩য় বিজয়ী প্রবাসী মোবারক হোসেন । সমসাময়িক পরিস্থিতির কারণে উপস্থিত থাকতে না পারায় তার পুরস্কার বুঝে নেন তার পিতা আব্দুল আহাদ সরকার । অনুষ্ঠান মঞ্চয়ান করেন তাক্ওয়া অসহায় সেবা সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আকিকুল ইসলাম ।

ব্রেইন প্রতিবন্ধী শাফী আহমেদ কে চিকিৎসার জন্য অর্থ প্রদান

ব্রেইন প্রতিবন্ধী শাফী আহমেদ কে চিকিৎসার জন্য অর্থ প্রদান



আকরাম হোসাইন মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার সাহিত্য ও সামাজিক সংগঠন বড়লেখা পাবলিকেশন সোসাইটি হতে উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের চরগ্রামের ছোট বাচ্ছা  ব্রেইনপ্রতিবন্ধী শাফী আহমেদ কে সামান্য অর্থ দিয়ে চিকিৎসা করানোর জন্য পাবলিকেশন সোসাইটি হতে অর্থ প্রদান করা হয়। 

১৬/১০/২০২০ তারিখ সোমবার অসুস্থ শাফী আহমেদ এর বাড়িতে দেখতে যান বড়লেখা পাবলিকেশন সোসাইটির সম্মানিত উপদেষ্টা বিশিষ্ট সমাজসেবক বড়লেখা উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জনাব এমাদুল ইসলাম এমাদ,সংগঠনের সম্মানিত সেক্রেটারী জনাব রুবেল হোসাইন, সম্মানিত সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব আব্দুস সামাদ, প্রচার স্পম্পাদক জনাব আব্দুল হালিম, সদস্য জনাব হাফিজ তাওসিফ ইমরান এসময়ে আরো উপস্থিত ছিলেন উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের তরুন সমাজসেবক সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জনাব হাসান শামীম।

সংগঠনের উপদেষ্টা জনাব এমাদুল ইসলাম এমাদ বলেছেন আমরা প্রাথমিকভাবে সামান্য সহযোগিতা করলাম পাবলিকেশন সোসাইটির মাধ্যমে চিকিৎসা শুরু করার জন্য ইনশাআল্লাহ আগামিতে সহযোগিতার হাত অব্যাহত থাকবে পাশাপাশি সমাজের বৃওবানদের প্রতি আহব্বান জানান ব্রেইন প্রতিবন্ধী শাফী আহমেদ এর পাশে দাড়িয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান পাবলিকেশন সোসাইটির চেয়ারম্যান মাহতাব আল মামুনকে অসুস্থ শাফী আহমেদ এর জন্য প্রবাসীদের সহযোগিতা নিয়ে অর্থ দান করার জন্য। 

চরগ্রাম এলাকার কৃতিসন্তান সমাজসেবক হাসান শামীম বলেছেন পাবলিকেশন সোসাইটির ধারাবাহিক মানবিক ও সামাজিক কার্যক্রম খুবই প্রশংসনীয় তিনি ধন্যবাদ জানান পাবলিকেশন সোসাইটির দেশ ও প্রবাসে থাকা সকল সদস্যকে ব্রেইনপ্রতিবন্ধী শাফী আহমেদ কে সহযোগিতা করার জন্য।

মধুপুরে কলেজ ছাত্রের হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

 মধুপুরে কলেজ ছাত্রের হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন


আঃ হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃটাঙ্গাইলের মধুপুরে ২০২০ সালে মহিষমারা নেদুর বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান শাখা হতে এস, এস, সি পাশ করে বর্তমানে মহিষমারা কলেজের একাদশ শ্রেনীর কলেজ ছাত্র এমদাদুল হকের হত্যার প্রতিবাদে উপজেলার মহিষমারা ইউনিয়নের নেদুর বাজারে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।  সোমবার(১৬ নভেম্বর)  দুপুরে মহিষমারা, নেদুরবাজার এলাকাবাসী ও ছাত্র ছাত্রীদের আয়োজনে নেদুরবাজারে  এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানবব্ন্ধনে এলাকার নারী,পুরুষ,ছাত্র,ছাত্রী,এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক গন অংশ গ্রহন করেন। এসময় বাজারের সকল ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে সকল স্তরের লোকজন অংশ গ্রহন করেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ইমাম হোসেন প্রধান শিক্ষক নেদুরবাজার উচ্চ বিদ্যালয়, শফিকুল ইসলাম সবুজ অধ্যক্ষ চাপড়ি কলেজ,ধলপুর উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম সপন, মহিষমারা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক জয়দেব সরকার,ইউপি সদস্য হযরত আলী,সমাজ সেবক আলতাফ হোসেন,ডা: নিজাম উদ্দিন, আ: বাছেদ, নিহত এমদাদুল হকের পিতা সুরুজ আলী প্রমুখ।এসময় বক্তারা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করে  মেধাবী কলেজ ছাত্র এমদাদুল হকের হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে ফাসির দাবী জানান। 

উল্লেখ্য নেদুর বাজার পাটপচা এলাকা হতে  ২ নভেম্বর  দুপুরে আনারস বাগানের কাঠাল গাছে বাঁধা অবস্হায় এমদাদুল হকের(১৮) মরদেহ উদ্ধার করছে মধুপুর থানা পুলিশ।নিহত এমদাদুল হক মহিষমারা কোনাপাড়া এলাকার সুরুজ আলীর ছেলে।

এমদাদুল হকের পারিবারিক সুত্রে জানা যায়,ঘটনার দিন এমদাদুল  সন্ধায় বাড়ী হতে বের হয় জুতা এবং মশার কয়েল কিনার উদ্দ্যেশে। রাত দশটার পরও এমদাদ বাড়ী না ফেরায় এমদাদের মোবাইল নাম্বারে তার পিতা ফোন করলে নাম্বারটি বন্ধ দেখায়। পরে রাতেই সম্ভাব্য সকল স্হানে খোজ নেয় পরিবারের লোকজন। সকালের দিকে মাহফুজা নামে এক মহিলা আনারস বাগানে ঘাস কাটতে গেলে তার লাশটি দেখতে পেয়ে চিনতে পেরে নিহতের চাচা আলমগীরকে খবর দেয়। পরে ঘটনা জানা জানি হলে এলাকার লোকজন মধুপুর থানা পুলিশকে খবর দিলে মধুপুর থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে  ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠান। এব্যাপারে এমদাদুল হকের পিতা সুরুজ আলী বাদী হয়ে মধুপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

উপকূলীয় জেলে পরিবারের অবস্থা জানতে কোস্ট ট্রাস্টের সমীক্ষা

 উপকূলীয় জেলে পরিবারের অবস্থা জানতে কোস্ট ট্রাস্টের সমীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক,ভোলাঃআর্থ-সামাজিক নানা সুবিধা থেকে বঞ্চিত জেলে পরিবারের নারীবৃন্দ ঢাকা, ১৬ নভেম্বর, ২০২০। নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ অসাধারণ অগ্রগতি অর্জন করলেও, উপকূলীয় জেলে পরিবারের নারী সদস্যবৃন্দ এখনো ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে ভীষণভাবে পুরুষের তুলনায় পিছিয়ে রয়েছেন। আজ বেসরকারি সংস্থা কোস্ট ট্রাস্ট এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য তুলে ধরে। কোস্ট ট্রাস্ট উপকূলীয় তিনটি জেলা কক্সবাজার, ভোলা এবং বাগেরহাটের ৪টি উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ১২০০ জেলে পরিবার থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এই বিশেষ সমীক্ষা পরিচালনা করে। ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ‘উপকূলীয় মৎস্য খাতে নারীর অবদানের স্বীকৃতি প্রয়োজন: আর্থ-সামাজিকভাবে বঞ্চিত জেলে পরিবারের নারীবৃন্দ’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে সমীক্ষাটির সংক্ষিপ্ত ফলাফল উপস্থাপন করা হয়। 

কোস্ট ট্রাস্টের উপ-নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার ভৌমিকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংস্থাটির পরিচালক মোস্তফা কামাল আকন্দ, সমীক্ষার সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন সহকারী পরিচালক জহিরুল ইসলাম। এতে আরও বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের সভাপতি বদরুল আলম, গার্মেন্টস ট্রেড ইউনিয়নের নেত্রী সালেহা ইসলাম শান্তনা এবং কোস্ট ট্রাস্টের যুগ্ম পরিচালক মো. মজিবুল জক মনির। 

সমীক্ষার সার সংক্ষেপ উপস্থাপন করতে গিয়ে জহিরুল ইসলাম জানান, মৎস্য প্রক্রিয়াজাতের সঙ্গে সম্পৃক্ত নারী শ্রমিকদের সবাই পুরুষ শ্রমিকের তুলনায় দৈনিক প্রায় ২৫% কম মজুরি পাচ্ছেন। সম্পদ কেনাকাটায় জেলে পরিবারের ৩১% নারীরই কোনও মতামত গ্রহণ করা হয় না, পরিবারের সাধারণ ব্যয়ের ক্ষেত্রে ৫৮% নারী সদস্যরেই কোনও মতামত নেওয়া হয় না। অন্যদিকে জেলে পরিবারের মাত্র ২% নারী সদস্য সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের সঙ্গে কোনও বিশেষ প্রয়োজনে সরাসরি যোগাযোগ করেছেন এবং  সমাজের কোন সালিশে বা অন্য কোনও সিদ্ধান্তগ্রহণ প্রক্রিয়ায় জেলে পরিবারের ৮২% নারীই কোনওদিন কোনভাবে অংশ গ্রহণ করেননি। তাছাড়া জেলে পরিবারের নারী সদস্যদের ৬৫% কোনও না কোনও সহিংসতার শিকার এবং পুরুষ সদস্য মাছ ধরতে বাড়ির বাইরে থাকলে তাদের প্রায় সবাই আতংকে থাকেন। মোস্তফা কামাল আকন্দ বলেন, উপকূলীয় জেলেরা যখন মাছ ধরতে সমুদ্রে চলে যান, যখন পরিবারের নারী সদস্যটিকে একটানা কয়েকদিন পুরো সংসারটি সামলানোর দায়িত্ব পালন করতে হয়। নারীর এই কাজগুলো বেশিরভাগই অর্থের বিনিময় মূল্য দিয়েই বিবেচনা করা হয় না। এ জন্য এই খাতে নারীর অবদানটির এখনো কাক্সিক্ষত রকম স্বীকৃতি নেই। বদরুল আলম বলেন,  মৎস্য খাতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সম্পৃক্তদের ১০-১২%ই নারী, কিন্তু  তাদের অবদানের আলাদা কোনও তথ্য নেই, এই বিষয়ে উদ্যোগ প্রয়োজন। সালেহা ইসলাম শান্তনা বলেন, শ্রম আইনে নারী-পুরুষের বৈষম্য না থাকলেও, নারী জেলেরা স্পষ্ট বৈষম্যের শিকার। কঠোর আইন প্রয়োজন। 

সনত কুমার ভৌমিক বলেন, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ মৎস্য আহরণ থেকে মৎস্য উৎপাদনে বিশ্বে তৃতীয় এবং অভ্যন্তরীণ মৎস্যচাষে বিশ্বে ৫ম, নারীর অংশগ্রহণ এক্ষেত্রে স্বীকৃত হলে আমাদের এই অর্জন টেকসই করা সহজ হবে। 

সংবাদ সম্মেলনে কয়েকটি সুপারিশ তুলে ধরা হয়, সেগুলো হলো: মৎস্য খাতে নারীর অবদান চিহ্নিত করতে বিশেষ নীতিমালা প্রণয়ন, জেলে পরিবারের নারী সদস্যদেরকে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করা, মৎস্যখাত সম্পর্কিত বিভিন্ন কর্মসূচিতে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত, মৎস্যশ্রমিকদের জন্য শ্রম নীতিমালা বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ।

সাংবাদিকসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ,প্রতিবাদের ঝড়

 সাংবাদিকসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ,প্রতিবাদের ঝড়


ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃদৈনিক নবচিত্র পত্রিকার বার্তা প্রধান জেলার সিনিয়র সাংবাদিক আসিফ কাজল ও দৈনিক যুগান্তরের কালীগঞ্জ প্রতিনিধি শাহরিয়ার রহমান সোহাগসহ তিনজনের নামে ৫০০/৫০১ ধারায় অভিযোগ দিয়েছেন আব্দুস সালাম ও আজির উদ্দীন নামে ব্যাংকের দুই কর্মচারী। এই দুই কর্মচারী সম্প্রতি টাকা চুরির দায়ে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন। অভিযোগপত্রে প্রধান আসামী করা হয়েছে কালীগঞ্জ অগ্রনী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মোঃ নাজমুস সাদাতকে। সোমবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী কালীগঞ্জ আদালতের বিজ্ঞ বিচারকের আদালতে সাময়িক বরখাস্তকৃত আব্দুস সালাম ও আজির উদ্দীন পৃথক ভাবে অভিযোগ দুইটি দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত অভিযোগটি তদন্ত করে ২০২১ সালের ২১ জানুয়ারী কালীগঞ্জ থানার ওসিকে প্রতিবেদন দাখিলের নিদের্শ দিয়েছেন। বাদী আব্দুস সালাম ও আজির উদ্দীন পৃথক অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছেন প্রধান আসামী তার অধীনস্ত কর্মকর্তা কর্মচারীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন। প্রতবিাদ করায় দুই মামলার বাদীর সঙ্গে প্রধান আসামী ব্যাংক ম্যানেজারের মতনৈক্য হয়। এরপর ১ নং আসামী অপর আসামীদের সঙ্গে ষড়যন্ত্র করে ব্যাংকের কর্মচারী প্রবিধানমালা-২০০৮ বিধি উপেক্ষা করে বাদী ও তার পরিবারের ভাবমুর্তি নষ্টের জন্য অপপ্রচারের অংশ হিসেবে গত ২৭ ও ২৮ অক্টোবর “কালীগঞ্জ অগ্রনী ব্যংকের দুই কোটি টাকা আত্মসাৎ ম্যানেজারসহ দুই কর্মকর্তা বরখাস্ত” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করেন। এতে ১০ লাখ টাকা করে দুই বাদীর নাকি ২০ লাখ টাকা সম্মানহানী ঘটেছে বলে দাবী করা হয়। এদিকে অগ্রনী ব্যাংক ঝিনাইদহ জোনাল অফিস থেকে তথ্য নিয়ে জানা গেছে, মামলা দায়েরকারী কালীগঞ্জ অগ্রনী ব্যাংকের দুই কর্মচারী আব্দুস সালাম ও আজির উদ্দীন ব্যাংক থেকে ভুয়া কৃষক সাজিয়ে লাখ লাখ টাকা লুট করেছেন। তদন্ত শুরুর আগে ও পরে তারা বিভিন্ন সময় ২৫ লাখ টাকা জমাও দিয়েছেন। প্রথমিক ভাবে সত্যতা প্রমানিক হওয়ায় তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ঝিনাইদহ জোনাল অফিস ও ঢাকা অফিসের তদন্ত চলমান রয়েছে। কালীগঞ্জ অগ্রনী ব্যাংকের ম্যানেজার নাজমুস সাদাত জানান, প্রতিদিন সাময়িক বরখাস্তুকৃদদের বিরুদ্ধে নতুন নতুন অসঙ্গতি ও দুর্নীতির তথ্য পাচ্ছে তদন্ত দল। এদিকে দুই সাংবাদিকের নামে মিথ্যা ও হয়রানীমুলক অভিযোগ দাখিল করায় সারা জেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের মধ্যে প্রতিবাদের

ঝিকরগাছায় অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে শিক্ষকদের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভা

ঝিকরগাছায়  অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে শিক্ষকদের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভা



মোঃ ইকরামুল করিম, ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ যশোরের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ ঝিকরগাছা সরকারি এমএল মডেল হাই স্কুলে অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে শিক্ষকদের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

আজ সোমবার সকাল ১১টার সময় ঝিকরগাছা সরকারি এমএল মডেল হাই স্কুলের সভাকক্ষে এশিয়া আর্সেনিক নেটওয়ার্ক এর আয়োজন ও বাস্তবায়নে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এনসিডিসি প্রোগ্রামের সহযোগিতায় এবং জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে এমএল মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান আজাদ এর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, এশিয়া আর্সেনিক নেটওয়ার্কের টিম লিডার তরুণ কান্তি হোড়, আইটি অফিসার জিয়াউর রহমান, ডাটা সুপার ভাইজার মোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা সুপার ভাইজার রবিউল ইসলাম। এছাড়াও ঝিকরগাছা সরকারি এমএল মডেল হাই স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক এএফএম সাজ্জাদুল আলম, সহকারী শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম, আমিরুল ইসলাম, আফরোজা খানম, রাজিয়া সুলতানা, সুমা কর্মকার, স্বপন কুমার ঘোষ, অমিয় বিশ্বাস, মুনির হোসেন, উজ্জ্বল বিশ্বাস, দেবাশীষ বিশ্বাস সহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

স্বামীর জীবন বাঁচিয়ে ভালোবাসার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন স্ত্রী

 স্বামীর জীবন বাঁচিয়ে ভালোবাসার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন স্ত্রী



সম্রাট, ঝিনাইদহঃ মা-বাবা পছন্দ করে বিয়ে দিয়েছে। বিয়ের পর আমিও তাকে ভালোবেসে ফেলেছি। আমাদের একটি সন্তান আছে, বিয়ের পর আমার স্বামীকে বলেছিলাম মরলে একসাথে মরব, বাঁচলে একসাথেই বাঁচব। আমার স্বামী যদি মারা যায় তাহলে আমি কাকে নিয়ে বাচব। তাই আমি আমার স্বামীকে কিডনি দিয়েছি। দুই জন একটি করে যতদিন আল্লাহ বাঁচিয়ে রাখেন ততদিন বেঁচে থাকবো’ কথাগুলো হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে বলছিলেন ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার হরিশপুর গ্রামের  রাশিদুল ইসলামের স্ত্রী সেতু খাতুন।স্বামী রাশিদুলের ২ টি কিডনি নষ্ট হওয়ার কারণে তিনি তার একটি কিডনি দিয়েছে। ভালোবাসার এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন  প্রত্যন্ত গ্রামের সহজ সরল গ্রাম্য বধু।

জানা যায়, সাড়ে ৩ বছর আগে পারিবারিক ভাবে ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার  হরিশপুর গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে রাশিদুরের সাথে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাতিভাঙ্গা গ্রামের হবিরর রহমানের মেয়ে সেতু খাতুনের বিয়ে হয়। আনসার সদস্য রাশিদুল ইসলাম বিয়ের পর স্ত্রীর সাথে গড়ে ওঠে ভালোবাসার গভীর সম্পর্ক। ভালোই চলছিল তাদের জীবন।

কিন্তু হঠাৎ ৩ মাস পুর্বে রাশিদুল ইসলাম অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে পরীক্ষা শেষে তার কিডনি বিকল হয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানান। মধ্যবিত্ত পরিবার হওয়ায় কিডনি নতুন করে নেওয়ার সামর্থ্য নেই তার পরিবারের। মৃত্যুপথযাত্রী স্বামীকে বাঁচাতে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন তার স্ত্রী সেতু খাতুন। নিজের একটি কিডনি স্বামীকে দেন।

রাশিদুল ইসলামের চাচাতো ভাই সবুজ হোসেন বলেন, গত ১২ নভেম্বর রাজধানীর শ্যামলী ৩ নং সড়কের সিকেডি কিডনি হাসপাতালে তাদের অপারেশন করা হয়। ১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৪ টার দিকে অপারেশন শুরু হয়। রাত ৯ টায় সফল অপারেশন। বর্তমানে স্বামী ও স্ত্রী দুই জনই সুস্থ আছে। রাশিদুল ইসলাম আইসিইউতে আর স্ত্রী সেতু জেনারেল বেডে আছেন। ভালোবাসার এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করে নজির সৃষ্টি করায় প্রসংশায় ভাসছেন সেতু খাতুন।

সেতুর মা নুরনাহার বেগম বলেন, আমার মেয়ে আমার জামাইয়ের জন্য যা করেছে তাতে আমরা খুশি। তিনি সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

নন্দীগ্রামে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী সহ গ্রেফতার ২

 নন্দীগ্রামে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী সহ গ্রেফতার ২

নন্দীগ্রাম বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়া নন্দীগ্রামে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী সহ ২জন কে গ্রেফতার করেছে নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ। জানাযায়, গোপন সংবাদের উপর ভিত্তি করে নন্দীগ্রাম থানার তদন্ত অফিসার মোঃ আব্দুর রশিদ এর দিক নির্দেশনায় এসআই রুবেল মিয়া ও এসআই চাঁন মিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ১৬ই নভেম্বর রাত ৩টায় অভিযান চালিয়ে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী উপজেলার ওমরপুর (বিষ্ণুপাড়া) গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে মোঃ আব্দুস সালাম (২২) কে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। তার নামে ২০১৮ সালে সিংড়া নাটোর নারী শিশু আদালতে তার স্ত্রীর করা মামলায় তাকে যৌতুক নিরোধ আইনের (৩)ধারায় ২বছরের সশ্রম কারাদন্ড সাথে দুই হাজার টাকা জরিমানা সহ অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের রায় প্রদান করে আদালত। অন্যদিকে একই ভাবে থানার তদন্ত অফিসার মোঃ আব্দুর রশিদের দিকনির্দেশনায় এসআই সুবোধ চন্দ্র রায় ও এসআই রুবেল মিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে জি আর ওয়ারেন্ট মূলে ১৬ই নভেম্বর রাত ২টার পর উপজেলার হাজারকি গ্রামে অভিযান চালিয়ে উক্ত গ্রামের মৃত মিছির আলীর ছেলে মোঃ কামরুল হাসান দুলাল (৫০) কে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। পরবর্তীতে আসামীদের কে জেল হাজতে প্রেরণ করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নন্দীগ্রাম থানার ডিউটি অফিসার এসআই রুবেল মিয়া।

বিজিবির উদ্ধারকৃত ১১ টি মূল্যবান কষ্টিপাথর পাহাড়পুরে হস্তান্তর

 বিজিবির উদ্ধারকৃত ১১ টি মূল্যবান কষ্টিপাথর পাহাড়পুরে হস্তান্তর

রহমতউল্লাহ  আশিকুর  জামান নুর , বদলগাছী  নওগাঁঃনওগাঁ জেলায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)  ২০১৯ ও ২০২০ সালের বিভিন্ন সময়ে টাস্কফোর্স এবং বিশেষ অভিযানে  ১১টি মূল্যবান কষ্টি পাথর এবং প্রত্নতাত্বিক মানসম্পন্ন মূর্তি প্রত্নতাত্বিক জাদুঘরে হস্তান্তর করা হয়েছে।

রবিবার বিকেলে সীমান্ত পাবলিক স্কুলে প্রধান অতিথি হিসেবে এগুলো হস্তান্তর করেন রাজশাহী সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ বিপিএম জি।উক্ত হস্তান্তরকৃত ১১টি কষ্টি পাথর এবং প্রত্নতাত্বিক মূর্তিগুলোর ওজন ২৭০ কেজি, যার আনুমানিক মূল্য দুই কোটি ছয় লাখ ৫৯ হাজার টাকা।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ১৬ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল একেএম আরিফুল ইসলাম পিএসসি, উপঅধিনায়ক এটিএম আহসান হাবীব, রাজশাহী প্রত্নতাত্বিক বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক নাহিদ সুলতানাসহ জেলা প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক ও বিজিবির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

পরে জেলার বদলগাছী উপজেলার  ৩ নং   পাহাড়পুর ঐতিহাসিক পাহাড়পুর প্রত্নতাত্বিক জাদুঘরে সংরক্ষণের জন্য রাজশাহী প্রত্নতাত্বিক বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক নাহিদ সুলতানার কাছে প্রধান অতিথি এসব কষ্টি পাথর হস্তান্তর করেন। এ সময় বিজিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়, কিছু চোরাকারবারি তাদের অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য দেশের এ ধরনের দুর্লভ কষ্টি পাথর ও প্রত্নতাত্বিক মানসম্পন্ন মূর্তিগুলো পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করে থাকে। এ ধরনের দুর্লভ পাচাররোধে বিজিবি সীমান্তে কঠোর নজরদারি করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় নওগাঁ ১৬ বিজিবি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে মূল্যবান কষ্টি পাথরের এবং প্রত্নতাত্বিক মানসম্পন্ন মূর্তি উদ্ধার করে।

নওগাঁর আত্রাইয়ে প্রশাসনের উদ্যোগে মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

 নওগাঁর আত্রাইয়ে প্রশাসনের উদ্যোগে মাসিক সভা অনুষ্ঠিত



রাজশাহী ব্যুরোঃনওগাঁর আত্রাইয়ে উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।সোমবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ হল রুমে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মাসিক সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনিষ্ঠিত হয়৷  

এসময় উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম, আত্রাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মোসলেম উদ্দিন, উপজেলা আ’লীগ সভাপতি নৃপেন্দ্র নাথ দত্ত দুলাল, জেলা পরিষদ সদস্য ফেরদৌস চৌধুরী, কৃষি অফিসার কে এম কাওছার, ইউপি চেয়ারম্যান আক্কাস আলি, শফিকুল ইসলাম, শিক্ষা অফিসার জিল্লুর রহমান, আত্রাই প্রেসক্লাব সদস্য্য সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার এ বি এম আঃ হাকীম, সাংবাদিক তপন কুমার সরকার, বনিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোর্শেদ আলম প্রমুখ।

মটর চালিত ভ্যানগাড়ী উপহার দিলেন মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু

মটর চালিত ভ্যানগাড়ী উপহার দিলেন মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু




সম্রাট হোসেন, ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ



ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার বাশবাড়ীয়া ইউনিয়নের ভৈরবা গ্রামের আব্দুল মজিদ "পাগলী মায়ের সন্তান আব্দুল্লাহর" জন্মের পর থেকেই দ্বায়িত্ব নেওয়ায় জীবিকা নির্বাহের জন্য। 


 আব্দুল মজিদকে একটি মটর চালিত ভ্যানগাড়ী উপহার দিলেন ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক, ঝিনাইদহ পৌরসভার সুযোগ্য সফল মেয়র জননেতা জনাব আলহাজ্ব সাইদুল করিম মিন্টু।


এছাড়াও তিনি আব্দুল্লাহর লেখার পড়ার দ্বায়িত্ব নেন এবং জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের সাথে কথা বলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার উপহার "গৃহহীন মানুষের পুনর্বাসন" একটি বাড়ী পাওয়ায়ে দেবেন বলে আশ্বস্ত করেন।

স্বর্ণপদক পেলেন চেয়ারম্যান পারভেজ মাসুদ লিলটন

 স্বর্ণপদক পেলেন চেয়ারম্যান পারভেজ মাসুদ লিলটন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃকরোনা মোকাবেলায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ ফোরামের পক্ষ থেকে স্বর্ণপদক পেলেন চেয়ারম্যান পারভেজ মাসুদ লিলটন। তিনি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ঘোড়শাল ইউনিয়নের একাধিকবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান। খোজ নিয়ে জানা যায়, দেশে করোনাকালীন সময় সদর উপজেলার ঘোড়শাল ইউনিয়নসহ বিভিন্ন স্থানে স্বাস্থ্য বিধি মেনে সামাজিক দুরত্ববজায় রাখতে মাস্ক ব্যবহার করাসহ করোনা মোকাবেলায় সর্বাত্বক ভ’মিকা পালন করেছেন। এছাড়াও কারোনাকালীন সময়ে সরকারী অনুদানের পাশাপশি অসহায় কর্মহীন খেটে খাওয়া মানুষকে নিজ উদ্যোগে আর্থিক সহযোগিতা প্রদানসহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। জীবনের ঝুকি নিয়ে রাত দিন জনগণের কল্যানে কাজও করেছেন তিনি। এরই স্বীকৃতি স্বরুপ বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ ফোরামের পক্ষ থেকে সম্প্রতি তাকে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়েছে। বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ ফোরামের সভাপতি এস এ এম জাকারিয়া আলম ও সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন ভুইয়া রিপন স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে ঘোড়শাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বরাবর স্বর্ণপদক ক্রেষ্টটি পাঠানো হয়।

ফেন্সিডিল সহ ডিবি পুলিশের হাতে আটক কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মিন্টু

ফেন্সিডিল সহ ডিবি পুলিশের হাতে আটক কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মিন্টু


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃঝিনাইদহ পশ্চিমাঞ্চলের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মিন্টু ৫০ বোতল ফেন্সিডিল সহ  গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে। মিন্টু চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের জীবনা গ্রামের সানোয়ার ওরফে মনা মিয়ার ছেলে। 

সোমবার বিকালে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার হলিধানী ইউনিয়নের ভেটরিনারি কলেজের সামনে থেকে গোয়েন্দা পুলিশের এসআই সেলিম তাকে আটক করেন। তার শরীর তল্লাসী করে ৫০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে পুলিশ। 

ইতিপুর্বে মিন্টু দশমাইল গরুহাটের একটি দোকান থেকে গাজাসহ র‌্যাব-৬ এর হাতে আটক হয়। কিন্তু আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে জামিনে মুক্তি পেয়ে আবারো সে মাদক ব্যবসা শুরু করে। 

এলাকাবাসির অভিযোগ, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী মিন্টু দীর্ঘদিন ধরেই প্রশাসনের নাকের ডগায় মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে। জীবনা গ্রামের বিলের ধরে রয়েছে তার বাগানবাড়ি। সেখানে নিয়মিত মাদকের আড্ডা চলতো। জীবনা বিলের ধারে রয়েছে তার অসাাজিক কার্যকলাপের ডেরা। 

বাইরে থেকে নারী নিয়ে এসে সেখানে ফুর্তি মারা হতো। চুয়াডাঙ্গার জীবনা, দশমাইল, সদরের বংকিরা, গোবিন্দপুর, হাজরা ও চোরকোল গ্রামে মাদক বিক্রি করে যুবসমাজকে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে নিয়ে গেছে এই মিন্টু। তার অত্যাচারে এলাকাবাসি অতিষ্ঠ ছিল। 

গোয়েন্দা পুলিশের এসআই সেলিম রেজা। জানান, গোপন সুত্রে খবর পেয়ে আমরা হলিধানী ইউনিয়নের ভেটরিনারি কলেজের সামনে চেকপোষ্ট বসিয়ে তাকে আটক করতে সমর্থ হয়। তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে সদর থানায় মামলা করা হবে।

পটিয়ায় বিএনপি মেয়র মনোনয়ন প্রত্যাশী ফজলুল কাদের জুলু জন্মদিন পালন

পটিয়ায় বিএনপি মেয়র মনোনয়ন প্রত্যাশী ফজলুল কাদের জুলু জন্মদিন পালন


সেলিম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টারঃ-১৫ ই নভেম্বর রবিবার সন্ধ্যা ৭টায় কর্ণফুলী কমিউনিটি সেন্টারে   আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র মনোনয়ন প্রত্যাশী ও জাতীয়তাবাদী তরুল দলের কেন্দ্রীয় কমিটির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল কাদের জুলুর জন্মদিন উৎসব পালন করেছে পটিয়া পৌরসভা বিএনপি, যুবদল, ছাএদল, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা কর্মীরা। কেক কেটে জন্মদিন উৎসব পালন করা হয়।এ উপলক্ষে  আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে রাতে খাবার আয়োজন করা হয়     জন্মদিন আলোচনা সভায় উপস্থিত পটিয়া পৌরসভা   বিএনপি'র সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি কবিয়াল ইউছুপ, পৌর বিএনপি নেতা সাবেক কমিশনার  মুক্তিযুদ্ধা  আবুল ফয়েজ, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার যুবদলের সহ-সভাপতি আবদুল মন্নান তালুকদার, যুগ্ম সম্পাদক আবুল হোসেন বাবলু,মমুহাম্মদ সিরাজ, মোঃ বোরহান, মোঃ  নাছির উদ্দীন, মোঃ  বাদশা, আবুল কাশেম, মোঃ করিম দক্ষিণ জেলা  যুবদল নেতা নুরুল আলম, মোঃ মন্জু, মোঃ হাসান,কাদের,নাজিম,বাবলু, হাবিবুর রহমান রিপন, আবুল,মোঃ পারভেজ, ছুটন, মুন্না, ছাত্রদল নেতা নাছির, সৌরভ, রিকু, রবিউল, সাইফু, রিপন,সেচ্ছাসেবক দলের মীর মোহাম্মদ  জসিম, মোঃ সাইফুর রহমান, শিবলু,পারুক, নুরু প্রমুখ। সভায় বক্তারা আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে ময়দানে কাজ করার আহবান জানান। পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি  মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী   ফজলুল কাদের জুলু সবার কাছে দোয়া আশীর্বাদ কামনা করেন।  

শ্রমিক কল্যাণ সমবায় সমিতির মৃত্যুর দাবি নগদ অর্থ প্রদান

  শ্রমিক কল্যাণ সমবায় সমিতির মৃত্যুর দাবি নগদ অর্থ প্রদান


সেলিম চৌধুরী স্টাফ রিপোর্টারঃ- চট্টগ্রামের পটিয়া অটো, টেম্পো, টেক্সি, সিএনজি, রাভী, টাটা, এইচ, মাহিন্দ্র পরিবহন শ্রমিক কল্যাণ সমবায় সমিতির রেজিঃ নং ৭৩৫০/৩১০ এর  উদ্যেগে ১৬ নভেম্বর সোমবার  সকালে  সমিতির ১৮৩০নং কার্ড সদস্য মোঃ  ছালা উদ্দীন  অকাল মৃত্যুতে তার নমিনীর মৃত্যুর দাবি তার স্ত্রী শারমিন আকতার আকতার হাতে নগদ ১৫ হাজার  টাকা তুলে দেন সমিতির সভাপতি মোঃ বদিউল আলম। এসময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির    সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম (হিরু), দৈনিক জনতা সাংবাদিক সেলিম চৌধুরী, সংগঠনের  সহ সভাপতি লোক মান বাছা , সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশিদ,প্রচার সম্পাদক  বেলাল, সদস্য যথাক্রমে মোঃ জামাল উদ্দীন, আলী আকবর, বদিউল আলম,আবুলহোসেন,বেলাল,মোঃরফিক,হিসাবরক্ষক কে এম আমজাদ হোসেন প্রমুখ।

লোহাগড়ায় সমাজসেবার ভাতা নিয়ে চলছে হরিলুট, ঘুষ না দিলে মিলেনা ভাতার কার্ড

লোহাগড়ায় সমাজসেবার ভাতা নিয়ে চলছে হরিলুট, ঘুষ না দিলে মিলেনা ভাতার কার্ড


আজিজুর বিশ্বাস স্টাফ রিপোর্টার নড়াইলঃ নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার সমাজসেবা অফিসের ভাতা কার্ড নিয়ে চলছে হরিলুট। সমাজসেবা অফিসের ফিল্ড সুপারভাইজার মোঃ তমিজ উদ্দিন কে ঘুস না দিলে মিলেনা ভাতার কার্ড। ঘুষ ছাড়া সরকারী ভাতা মিলছেনা এমন অভিযোগ আছে পুরো লোহাগড়া উপজেলা জুড়ে।

একটানা ১২/বছর লোহাগড়া সমাজসেবা অফিসে কর্মরত থাকায় তমিজ উদ্দিন রাম রাজত্ব কায়েম করে চলেছে।

 কখনো তিনি নিজে আবার কখনো ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের মাধ্যমে হস্ত লিখিত চিরকুট দিয়ে ঘুষ নিয়ে কার্ড করে দেয়। 

অনেকে টাকা দিয়েও বছরের পর বছর ঘুরছে অসহায় ভাতা প্রার্থীদের। সরকারী সামাজিক সুরক্ষা ভাতা এখানে জনপ্রতিনিধিদের সুরক্ষার অস্ত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনপ্রতিনিধিরা ভাতার কার্ড বাবদ ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা করে নিলেও তমিজ উদ্দিনকে ২ হাজার ৫শ থেকে ৩ হাজার টাকা করে দিতে থাকেন।

সরেজমিন পুরো লোহাগড়া এলাকায় প্রায় শতাধিক মানুষের কাছে গিয়ে পাওয়া গেছে সরকারী ভাতার নানা অনিয়মের তথ্য।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার কোটাকোল ইউনিয়নের মাইগ্রামের অসুস্থ্য তৈয়ব আলী খন্দকার। 

গত ৩ বছর ঘুরে ৬ হাজার টাকা ঘুষ দিয়েও বয়স্ক ভাতার কার্ড না পেয়ে মারা যায়। পরে সেই টাকায় তার স্ত্রী আলেয়াকে বিধবা ভাতার কার্ড করে দেওয়া কথা বলে ঘুরাচ্ছে ওই ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা আসন (৪,৫,৬)’র সাবেক মেম্বর বিউটি রাণী মন্ডল। ভাতা কার্ড ও টাকা ফেরত না পাবার যন্ত্রনায় নানা জায়গায় অভিযোগ করেও সমাধান পাননি ওই বিধবা।

ওই ইউনিয়নের চর কোটাকোল গ্রামের মাহাতাব শেখের ছেলে খালিদ শেখ (১৫) বুদ্ধি প্রতিবন্ধি। গত ১ বছর আগে খালিদের মা লিপি বেগম ৬ হাজার টাকা বিউটি রাণী মন্ডলের হাতে তুলে দিলেও ভাতার বই এখনো না পেয়ে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ শামীম রেজার কাছে সম্প্রতি লিখিত অভিযোগ করেও কোন সুরাহ হয়নি।কাশিপুর ইউনিয়নের ধোপাদহ গ্রামের মৃত আলাল বিশ্বাসের ছেলে অমিত কুমার বিশ্বাস, (৭৩) শারিরীক প্রতিবন্ধী।

 প্রায় এক বছর আগে ৬ হাজার টাকা বিউটি রাণী মন্ডলের কাছে দিয়েও ভাতার বই না পেয়ে তিনি এখন নিরুপায়। এদিকে, দিঘলিয়া ইউনিয়নের কামাল শেখ, শালনগর ইউনিয়নের চাকসী গ্রামের রহিমা, একই গ্রামের শওকত, কাশিপুর ইউনিয়নের চালিরঘাট গ্রামের খোকন, শালবরাত গ্রামের আসমা, কোটাকোল ইউনিয়নের মুক্তা, চর কোটাকোল গ্রামের হাসিনা বেগম, এরা সবাই বিউটি রাণী মন্ডলকে ভাতার কার্ডের জন্য ৬ হাজার টাকা করে দিয়ে দীর্ঘদিন ঘুরছে। আর বিউটি রাণী মন্ডল সমাজসেবা অফিসের এজেন্ডের মধ্যে বড় এজেন্ড হিসেবে পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষকে ভাতা পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে ভুল বুঝিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। 

এদিকে,  ইতনা ইউনিয়নের ইতনা পূর্ব পাড়ার বিধবা আয়সা বেগম (৬৫) টাকা দিতে না পারায় ভাতার কার্ড হয়নি। তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, আমি গরীব মানুষ, টাকা কোথা থেকে দেব, আর টাকা না দিলে কার্ড হয় না।

বিউটি রাণী মন্ডলের কাছে টাকা নেওয়ার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রতিটি কার্ডের জন্য তমিজ উদ্দিন আমার নিকট থেকে প্রথমে ২৫শ করে টাকা নেয়। পরে ভাতার বই দেওয়ার সময় বাকি ৫’শ করে দিতে হয়। এখনো আমার তার কাছে ১০টি কার্ডের টাকা জমা দেওয়া রয়েছে। সে নিজ হস্তে লিখে আমার কাছ থেকে টাকা নিয়েছে। 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সমাজসেবা অফিসের ফিল্ড সুপারভাইজার মোঃ তমিজ উদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি টাকা দেওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন অামাদের অফিসে নাম দিয়ে অাসেন চেয়ারম্যান ও মেম্বার অামারা তাদের সরকারি নিয়ম অনুযায়ী কাজ করি। কোনো টাকার লেন দেন হয় না। 

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান শিকদার আব্দুল হান্নান রুনু জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি বরাবর দাইয়ানুর রহমান মিষ্টারনুর এর খোলা চিঠি

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি  বরাবর  দাইয়ানুর রহমান মিষ্টারনুর এর  খোলা চিঠি

বরাবর,

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির, সম্মানিত সভাপতি

আমি দাইয়ানুর রহমান (মিষ্টারনুর)

সাধারণ সম্পাদক 

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, কুয়েত  শাখা

বর্তমানে আমাকে বহিস্কৃত করা হয়েছে। আমি জানতে চাই আমাকে বহিস্কৃত করার কারণটা কি??

আমাকে ০১/০৪/২০১৮ সালে কুয়েতে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন শাখা কমিটি দেওয়া হয়েছিলো , আমি দাইয়ানুর  রহমান মিষ্টারনুর কুয়েত প্রবাসী হয়েও অনেক পরিশ্রমের ফাঁকে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পিতা মুজিবের নামের সংগঠন বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েতে প্রতিষ্ঠাতা করি বহিবিশ্বে সোশ্যাল মিডিয়া ইলেকট্রনিক মিডিয়া প্রিন্ট মিডিয়া সহ রাজনৈতিক মঞ্চে বিভিন্ন আওয়ামী লীগের ও অঙ্গসংগঠন সহ সহযোগী  সংগঠনের সাথে সম্মিলিতভাবে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম প্রচার প্রচারণার মাধ্যম দিয়ে প্রতিষ্ঠা করে ব্যাপক জাঁকজমক পরিবেশে প্রচার বিস্তার লাভ করে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েত শাখা বিগত 3 বছর যাবৎ বাংলাদেশে নিযুক্ত দূতাবাসে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর আমন্ত্রণ পাই এবং দূতাবাসের মধ্যে আমাদের বক্তব্য সুযোগ থাকে এমনকি প্রতিনিয়ত আমাদের সম্প্রচার প্রবাহিত করে আলোড়ন সৃষ্টিকরি এখন আমি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সম্মানিত সাধারণ সম্পাদকের কাছে জানতে চাই কি কারনে আমাকে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েত শাখা থেকে সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হল? এর বিচার চাই বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর সম্মানিত সভাপতি সাহেবের কাছে। 

আর বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েত শাখার পরিচালনায় আমার ব্যর্থতাটা কি?

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েত শাখার সভাপতি আমিনুর রহমান খান কুয়েতের মাঝে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর লিফটের লাগিয়ে ভিসা ব্যবসায়ী মানি লন্ডারিং হুন্ডির ব্যবসায়ীদের সাথে লিপ্ত থাকায় শত শত মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তাদের সাথে প্রতারণা করায় আমি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর কুয়েতের কার্যক্রম তার থেকে দূরে নিয়ে আসি বিভিন্ন অনৈতিক কার্যক্রম আমিনুর রহমান খান কুয়েতে চালিয়ে যাওয়ার সূত্রে আমি তার থেকে অনেক দূরে থাকি এমনকি আমিনুর রহমান আমিন ভিসা ব্যবসা করে আমার দুই ভাইকে অবৈধ  করেছে এবং আমার দুই রিলেটিভ সহ তাদেরকে অবৈধ  করেছে জাল ভিসা বিক্রি করে আমাকে বাংলাদেশের 30 লক্ষ টাকার মতো ঠকিয়েছে এমত অবস্থায় দীর্ঘদিন একসাথে থাকা কালিন কিছু বলতে পারেনি আপনারা অবগত আছেন যে লক্ষ্মীপুর 2 আসনের এমপি জনাব শহিদুল ইসলাম পাপুল কাণ্ডে আমিনুর রহমান খান জড়িত আছেন এমনকি তার সাথে একমত পোষণ করিনি আমাদের বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর ব্যানারে আমি মানা করার সত্ত্বেও জনাব পাপুল সাহেবের নাম দিয়েছে আমাদের ব্যানারে  কিন্তু বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মহোদয় এবং সাধারণ সম্পাদক মহোদয়ের ছবি পর্যন্ত ব্যানারে জায়গা দেই নাই আমি বলার সত্ত্বেও আমাদের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ছবি ব্যানারে লাগাতে দেয় নাই আর বিভিন্ন স্থান থেকে আমার কাছে অভিযোগ এসেছে আমিনুর রহমান খান ভিসা বিক্রি করে তাদেরকে ভিসা দেয় নাই তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে সেই টাকা মেরে দিয়েছে সেই সাথে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েতের সাংগঠনিক সম্পাদক মফিজুর রহমান খানের কাছ থেকেও সাত থেকে আট লক্ষ টাকার মতো সে নিয়েছে তার টাকা ফেরত দেই নাই আমার টাকাও ফেরত দেয় না এখনো পর্যন্ত আমার দুই ভাইকে কুয়েতের লিগেলিটি পাই নাই তার জন্য আর আমি বলার সত্ত্বেও সে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা সৃষ্টি করে এমনকি কুয়েতের মধ্যে যারা অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত সে বিষয় নিয়ে আমি তুমুল ঝড় তুলি বাংলাদেশে নিযুক্ত দূতাবাসে অভিযোগ করি যারা যারা ভিসা ব্যবসা করে আমাদের বাংলাদেশীদের প্রতারিত করেছে ও অবৈধ করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য দূতাবাস সহ সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলি এমনকি আমাকে হত্যার হুমকি পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন ভিসা ব্যবসায়ী ডোনারদের সাথে তার সম্পৃক্ত আমিনুর  আমাকে দাবানোর জন্য তারা যেভাবে বলে সেইভাবে আমার সাথে আচরণ করে এ নিয়ে আমি যেন ভয় পাই সেই হিসেবে করে ষড়যন্ত্র ও আমাকে কি ভাবে বিপদে ফালানোর যায় সে চেষ্টা করে ।

এ ব্যাপারে এমন কি আমি সাধারন সম্পাদক মোজাম্মেল হক  মহোদয়কে ফোন করে অবগত করেছি তিনি বলছেন সুন্দরভাবে একটা কমিটি তৈরি করে দাও আমি সেই কমিটিকে অনুমোদিত করে দিব। এই কথা শুনে আমি ভালো দক্ষ প্রকৃত মুজিব আদর্শের সৈনিক সভাপতি খোঁজে  ছিলাম এরই মাঝে সিদ্ধান্ত নিলাম দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে পরিচিত লাভ করে যে অর্জন করেছি সেই অর্জনের পেক্ষাপটে আমি নিজকে সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদককে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি আনার জন্য তৈরি ছিলাম এরই মাঝে কিভাবে জানতে পারে আমিনুর রহমান আমিন খান সে 3 বছর পরে যোগাযোগ করে সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক সাহেবের কাছে কিভাবে ভুলভাল বুঝিয়ে আমাকে মাইনাস করার জন্য ষড়যন্ত্র করে সার্থক হল আমি জানতে চাই রাজনৈতিক কর্মকান্ডে তার পূর্বের অবস্থানসহ কুয়েতের মাঝে তার দুর্নীতি ভিসা ব্যবসা এবং তার স্ট্যাটাস বংশমর্যাদা পরিচয় কি আসলেই কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদ মোজাম্মেল হক সাহেব কি জানেন??

কি করে তার কথা শুনে বিনা নোটিশে আমাকে সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হল?? আমি জানতে চাই বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে বিচার চাই সভাপতি মহোদয় এর কাছে দেশ ও জাতির কাছে।

আসলে কি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন টাকার কাছে বিক্রি হয়?? বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কি টাকার কাছে অদক্ষ ব্যক্তির কাছে মাথা নত করে??

আমি অভিযোগ দেওয়ার সত্বেও সেই ব্যক্তির যাচাই-বাছাই না করে তাকে কি করে সভাপতি বহাল রাখে?? আর যাকে সাধারণ সম্পাদক করেছে তার যোগ্যতা এবং রাজনৈতিক কর্মকান্ডের পূর্বের কোন পরিচয় পত্র আছে কিনা এ বিষয়ে খতিয়ে দেখার জন্য অনুরোধ করছি। 

আর একটা কথা বলতে চাই আমাকে বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে সহ-সম্পাদক করেছে। বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সম্পাদক 

আমি কিন্তু কুয়েতে জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদের কার্যক্রম চালু করি নাই। কুয়েতে আমার জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদের কোন পদ-পদবী নাই। এটার জের ধরে কেন সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক সাহেব দুই নৌকায় পা রাখার অভিযোগ করে?? নেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদ ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর মধ্যে পার্থক্যটা কি??

কুয়েতে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর পরিচয় আমার পরিচিত বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কুয়েত শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমি পরিচিত।প্রতিটি কার্যক্রম বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন নিয়ে করি।আর আমি জানতে চাই জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদ আর বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর মধ্যে পার্থক্যটা কি??

জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদ কি মোস্তাকের বা রাজাকারের কোন সংগঠন?? না আওয়ামী লীগ বিরোধী সংগঠন।তাহলে কি করে এই সংগঠনের নাম থাকায় আমাকে অবজেকশন করা হয়?জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদ একটি সংগঠন ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন আরেকটি সংগঠন তাহলে সমস্যাটা কি??আমার রাইট  নয় জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিশোধ করা?? আমার কি রাইট  নয় বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন করা??

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন একটি সামাজিক সংগঠন এই সংগঠনের সাথে থেকে যে কোন সংগঠন করা যায় কিনা?? আপনার কাছে জানতে চাই

তাহলে মোজাম্মেল হক সাহেব সহ কেন্দ্রীয় যত নেতৃবৃন্দ আছেন তারা কি অন্যান্য সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত নয়??

তাহলে আমার প্রতি কেন এই অবিচার করা হলো।।

নওরীন রাদ্রিকা সাংগঠনিক  সম্পাদক সে আমাকে আনফ্রেন্ড করল কোন কারনে??

জননেত্রী  শেখ হাসিনা পরিষদের না করার জন্য বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর গঠনতন্ত্রে লেখা আছে কিনা আমি জানতে চাই দেশ ও জাতি জানতে চায়?? 

ফেসবুক প্রোফাইলে আপনারা চেক করে দেখুন প্রতিটি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর নেতৃবৃন্দকে কার কত কিভাবে প্রচার প্রচারণা করা আছে। আর ফেসবুকে প্রচার আমার যতোটুকু আমি করে যাচ্ছি  তাহলে আইডি স্ক্রিনশট দিয়ে প্রচার ক্ষেত্র তৈরি করার জন্য সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক সাহেব কে বলেছে আর আমার প্রোফাইল স্ক্রিনশট দিয়ে উনি কি বুঝাতে চায়??

আমি কি বঙ্গবন্ধুর সৈনিক না জননেত্রী শেখ হাসিনার কর্মী না??

আমি কি রাজাকার কি বুঝাতে চায় মোজাম্মেল হক সাহেব আমি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মহোদয়ের কাছে বিচার চাই মোজাম্মেল হক সাহেবের এই কাজগুলা কেনো করছে। বিনা নোটিশে বিনা কারণে আমাকে হেয় করার উদ্দেশ্যে মোজাম্মেল হক সাহেব যে স্ট্যাটাস পোস্টগুলো দিচ্ছেন তার বিরুদ্ধে আমি তীব্র নিন্দা জানাই এই সকল কর্মকাণ্ডের জন্য বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মহোদয় সাহেবের কাছে বিচার চাই। 


নওরিন রাদ্রিকা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর কেউ নন সে উস্কানিমূলক কথা বলার কে এর জবাব চাই নওরীনের কথামতো কিসের জন্য মোজাম্মেল হক সাহেব চলবে তাহলে কি বুঝবেন এখানে?? 

ধন্যবাদ বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দ সকলকে।

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু 

জয় বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন।মোজাম্মেল হক সাহেব 

((দাইয়ানুর রহমান মিষ্টারনুর))

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, কুয়েত শাখা।

আজ কবি ও সাংবাদিক শেখ হামিদুল হকের জন্মদিন

 আজ কবি ও সাংবাদিক শেখ হামিদুল হকের জন্মদিন

স্টাফ রিপোর্টার : ক‌বি ও সাংবা‌দিক শেখ হা‌মিদুল হ‌ক'র আজ ৬৩তম জন্ম‌দিন। ১৯৫৭সালের ১৬ নভেম্বর য‌শোর জেলায় জন্মগ্রহণ ক‌রেন। সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সদস্য এবং সাপ্তাহিক রোববার যশোরের প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত আছেন। এছাড়া একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে আছেন।

ছাত্র জীবন থে‌কে লেখা‌লে‌খির হা‌তে খ‌ড়ি। মূলত‌ গল্প লেখার মাধ্য‌মে তার সা‌হিত্যাঙ্গ‌নে পদার্পণ। বর্তমা‌নে দে‌শের জাতীয় প‌ত্রিকায় নিয়‌মিত লি‌খে চ‌লে‌ছেন।দে‌শে ও দে‌শের বাই‌রে বি‌ভিন্ন গণমাধ্যম, লিটলম্যাগেও তার লেখা নিয়মিত প্রকা‌শিত হয়। তার গল্পের বই ' নষ্ট কষ্ট যখন' প্রথম প্রকাশ ২০১৪ একুশে বই মেলায়। এছাড়াও বেশ কয়েকটি যৌথ কাব্যগ্রন্থ আ‌ছে। বর্তমা‌নে তি‌নি বি‌দ্রোহী সা‌হিত্য প‌রিষদ য‌শোর'র সম্মানিত সদস্য। এছাড়া তিনি বাংলা‌দেশ ক‌বিতা কং‌গ্রেস' য‌শোর জেলা ক‌মি‌টির সহ-সভাপতি ও মধুসূদন সা‌হিত্য গোষ্ঠী য‌শোর,র সাধারণ সম্পাদক। তার সম্পা‌দিত সা‌হিত্য পত্র ' অ‌রিন্দম'। এ ছাড়াও বি‌ভিন্ন সামা‌জিক সেবামূলক প্রতিষ্ঠা‌নের সা‌থে যুক্ত আ‌ছেন।

বগুড়ায় ধানের দামে খুশি প্রান্তিক কৃষকরা

বগুড়ায় ধানের দামে খুশি প্রান্তিক কৃষকরা

মোঃ সবুজ মিয়া, বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়ার নন্দীগ্রামে উৎসবমুখর পরিবেশে চলতি আমন মৌসুমের ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ চলছে। কৃষকের উৎপাদিত ফসলের দাম আশানুরূপ হওয়ায় খুশি তারা। 

উত্তরাঞ্চলের শস্যভাণ্ডার হিসাবে খ্যাত বগুড়া জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলায় চলতি আমন মৌসুমে ১৯ হাজার ৩৭৫ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৮১৫ হেক্টর জমিতে আগাম জাতের ধান চাষ হয়েছে। আগাম জাতের ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

বর্তমান বাজারে ব্যাপক ভাবে নতুন ধানের ক্রয়-বিক্রয় চলছে। কৃষকরা তাদের ধান ভটবটি, মিনি ট্রাক ও ভ্যান গাড়িতে করে হাটগুলোতে নিয়ে আসছে। অনেকেই হাট-বাজারে বিক্রির পাশাপাশি বাড়ি থেকেও বিক্রি করছেন তাদের উৎপাদিত ধান।

সরেজমিনে হাটে গিয়ে দেখা গেছে, কাটারিভোগ জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে প্রতি মণ ১০৫০ থেকে ১১৫০ টাকা, ৪৯ ও ৫১ জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে ১০০০ থেকে ১১০০ টাকা পর্যন্ত। কৃষকরা জানান, ধানের এ বাড়তি দামে বেজায় খুশি তারা। 

রণবাঘা হাটে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষক হেলাল উদ্দিন বলেন, ৩০ মণ কাটারিভোগ ধান বিক্রির জন্য এনেছি। ব্যাপারীরা ১১২০ টাকা মণ দাম বলছে। আমি ১১৫০ টাকা মণ হলে বিক্রি করবো। 

কৃষক দুলাল চন্দ্র বলেন, ধানের দাম ভালোই আছে। তবে ধানের ফলন কম। কৃষকরা এই দামে আমন ধান বিক্রি করতে পারলে কিছুটা লাভের মুখ দেখতে পারবে।

নন্দীগ্রাম উপজেলা কৃষি অফিসার আদনান বাবু জানান, এই উপজেলায় ১৯ হাজার ৩৭৫ হেক্টর জমিতে কৃষকরা রোপা আমন ধান চাষ করেছে। এখন উপজেলায় পুরোদমে ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ চলছে। আমন মৌসুমে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৪ হাজার ২৮১ মেট্রিকটণ ধান। তবে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান উৎপাদন হবে আশা করছি।

বিয়ের দাবীতে এক তরুণীর প্রেমিক পুলিশ সদস্যের বাড়ীতে অনশন

বিয়ের দাবীতে এক তরুণীর প্রেমিক পুলিশ সদস্যের বাড়ীতে অনশন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃরাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের গড়ের পাড়ের অমল রায়ের পুত্র পুলিশ কনস্টেবল আনন্দের বাড়িতে বিয়ের দাবীতে রংপুর সিটির ৩৩ নং ওয়ার্ডের শরেয়ারতল গ্রামের ঝন্টু রায়ের মেয়ে রুপালী রানী অবস্থান করছেন।মেয়েটির অবস্থানের সময় পুলিশ কনস্টেবল আনন্দ তার কর্মস্থল লালমনির হাটে কর্মরত আছেন বলে জানা যায়।মেয়েটি অভিযোগ করে বলেন এক বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে আনন্দের সাথে আমার পরিচয় হয়।পরিচয় থেকে ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে।কিছুদিন আগে আমাকে বিয়ের কথা বলে তিস্তায় আনন্দের ফুফাতো বোনের বাসায় নিয়ে আমার ইচ্ছের বিরুদ্ধে শারিরীক সম্পর্ক করে,আমি বিয়ের কথা বললে টালবাহানা করে আমাকে বিয়ে না করে বাড়িতে ফিরত পাঠায়।আবার গত ২২শে আগস্ট  বিয়ের কথা বলে ফুসলিয়ে ফাসলিয়ে তিস্তার মোস্তফিতে আনন্দের তাওয়াতো বোনের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে পুনরায় শারীরিক সম্পর্ক করে।শারীরিক সম্পর্ক করার পর আমি বিয়ে করার কথা বললে নানা টালবাহানা করে।এরপর থেকে আমার সাথে দুর্ব্যবহার শুরু করে।আনন্দ আমার সর্বস্ব কেড়ে নিয়ে বেচে থাকার অবল্মবন টুকু শেষ করে দিয়েছে।তাই আমি আজ রবিবার ১২ঃ০০ঘটিকায় স্বেচ্ছায়  আনন্দের বাসায় এসেছি।আমাকে বিয়ে না করলে আমি আমার জীবন শেষ করে দিবো বলে জানান আনন্দের পরিবারের সদস্যদের।সাংবাদিকরা আনন্দের বাসায় মেয়েটির সাথে দেখা করতে গেলে আনন্দের পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের সাথে দুর্ব্যবহার করে।মেয়েটির সাথে দেখা পর্যন্ত করতে দেয়নি।পরে আনন্দের সাথে মুটোফোনে যোগাযোগ করা হলে আনন্দ সাংবাদিকের নাম শুনেই ফোন কেটে দেন এবং সাংবাদিকের  ফোন নাম্বার ব্লাক লিস্টে রাখেন।এ বিষয়ে ছিনাই ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান হক  বলু কে ফোন দেওয়া হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন আমি শুনেছি মেয়েটি আনন্দের বাড়িতে এসেছে।


মেয়ের বাবা ঝন্টু রায়ের কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমার মেয়ে আনন্দের বাসায় বিয়ের দাবীতে অবস্থান করছেন।

ঝিনাইদহ পুলিশে দক্ষতার ছাপ আইটি ও তথ্য প্রযুক্তিতে

 ঝিনাইদহ পুলিশে দক্ষতার ছাপ আইটি ও তথ্য প্রযুক্তিতে


খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধানঃঝিনাইদহ জেলা পুলিশে এখন আধুনিকতার ছাপ, মানবিক পুলিশ। মামলা, জিডি ও যে কোন কাজে হয়রানী মুক্ত পরিবেশ। পুলিশ ক্লিয়ারেন্স ও পুলিশ ভেরিফিকেশনে ঘুষ নেই। মানুষের নেই অযাথা হয়রানী ও ভোগান্তি। গ্রেফতার বানিজ্য বন্ধ হয়েছে। ঝিনাইদহ সদর থানাসহ বিভিন্ন সেক্টর এ ভাবেই গড়ে তোলা হয়েছে। বিশেষ করে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে হারানো মোবাইল, প্রতারণার মাধ্যমে বিকাশের টাকা, ছিনতাই হওয়া ইজিবাইক উদ্ধার করে এক অনন্য নজীর গড়েছে ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশ। এ পর্যন্ত একাধিক মানুষের চুরি বা ছিনতাই হওয়া মানুষের মোবাইল ও বিকাশের মাধ্যমে নেওয়া টাকা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে ঝিনাইদহ পুলিশ। তাছাড়া ব্যক্তিগত পাওয়ানা টাকা উদ্ধারেও কার্যকর ভুমিকা পালন করছে সদর থানা পুলিশ। আর এ সব সম্ভব হচ্ছে এক ঝাক তরুন দক্ষ পুলিশ অফিসারের কারণে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার উত্তর সমসপুর গ্রামের লিমনের একটি মোবাইল হারিয়ে যায় মধুপুর বাজার থেকে গোয়ালপাড়া যাওয়ার পথে। তিনি জিডি করলে হাটগোপালপুর পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই মোবাইলটি উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকের হাতে তুলে দেন। দুই বছর আগে সদর উপজেলার ভুপতিপুর গ্রামের আবেদ আলীর ছেলে রাজু আহম্মেদ পৌর এলাকার পবহাটি গ্রামের শহিদুলের ছেলে মোঃ সরোয়ারের নিকট হতে দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা ধার নিয়ে ঘুরাতে থাকেন।  টাকা ফেরৎ না দেওয়ার এক পর্যায়ে সরোয়ার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করে।  ঝিনাইদহ থানার ওসি মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের মধ্যস্থতায় সরোয়ারকে রাজু তার পাওনা দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা ফেরত দেন। কুমিল্লার হাবিব নামে এক ব্যক্তির একটি মোবাইল ঝিনাইদহ পৌর এলাকার কালিকাপুর শ্বশুর বাড়ী হতে চুরি হয়। হাবিব থানায় অভিযোগ করলে উক্ত মোবাইল ফোন উদ্ধার করে মালিকের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ। চর মুরারীদহ গ্রামের মোঃ হাফিজ ৫ বছর আগে ৯১ হাজার টাকা ধার নেন আরাপপুরের আব্দুল আলীমের কাছ থেকে। টাকা না পেয়ে তিনি থানায় অভিযোগ করলে টাকা উদ্ধারের ব্যবস্থা করে দেয় পুলিশ। একাত্তর টিভির সাংবাদিক রাজিবের মোবাইল ফোন হারিয়ে যায় সদরের হলিধানী এলাকা থেকে। তিনি পুলিশকে জানালে তথ্য প্রযুক্তি ব্যহার করে তার মোবাইল ২৪ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার করে দেন। ঝিনাইদহ শহরের ভুটিয়ারগাতি এলাকার যুবক নিজেই আত্মগোপনে থেকে অপহরণ নাটক সাজায়। ঝিনাইদহ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আবুল বাশার তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় তাকে অক্ষত উদ্ধার করেন। প্রমানতি হয় আশিক অনেকের কাঝ থেকে টাকা নিয়ে নিজেই নাটক সাজায়। মাগুরার ভায়না মোড় থেকে গত ৯ সেপ্টম্বর মিজানুর রহমান রেন্টুর ২২ হাজার টাকা দামের একটি মোবাইল সেট হারিয়ে যায়। সেটি উদ্ধার করে মালিককে ফেরৎ দেয় পুলিশ। ব্যাপারীপাড়ার রং মিস্ত্রি লালটুর ১০ হাজার টাকা প্রতারককরা বিকাশের মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়। গত ২৫ আগষ্ট টাকা উদ্ধার করে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। ঝিনাইদহ বিজয় টিভির প্রতিনিধি ও প্রেসক্লাবের সদস্য জহুরুল ইসলাম হিরোর ৯ হাজার ৮’শ টাকা বিকাশ একাউন্ট হ্যাক করে প্রতারককরা নিয়ে নেয়। তিনিও সেই টাকা ফেরৎ পান। এ ভাবে একের পর এক চমক সৃষ্টি করে চলেছেন ঝিনাইদহ জেলা পুলিশ। অনেক ছিনতাই হওয়া ইজিবাইক মোবাইল ট্রাকিং করে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে অন্যান্য থানার ওসিগন তথ্য প্রযুক্তির কাজে তেমন একটা দক্ষতা দেখানে পারেন নি। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আবুল বাশার জানান, আমরা সব কাজে যে সফল হয়েছি তা নয়। তবে পুলিশ মানবিক ও জনবান্ধব হওয়ার জন্য সাধারণ মানুষের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে আমরা সাধ্যমতো মানুষের হারানো বা ছিনতাই হওয়া মোবাইল এবং বিকাশের টাকা উদ্ধার করছি। আমাদের এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।

কানাইঘাটে শতাধিক গাছের চারা কাটার অভিযোগে মামলা, বিপাকে বাদী

 কানাইঘাটে শতাধিক গাছের চারা কাটার অভিযোগে মামলা, বিপাকে বাদী

কানাইঘাট প্রতিনিধি :কানাইঘাট উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির বড়বন্দ ২য় খন্ড গ্রামে সৌদিআরব প্রবাসী মঈনুল হকের স্ত্রী সালমা বেগমের কাছে ১ লক্ষ টাকা চাঁদা চেয়ে না পেয়ে প্রবাসীর বাড়ীতে রোপনকৃত বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় শতাধিক গাছের চারা কেটে ফেলেছে স্থানীয় দূর্বৃত্তরা। এনিয়ে প্রবাসীর স্ত্রী সালমা বেগম কানাইঘাট থানায় ও আদালতে মামলা করে পড়েছেন বিপাকে। মামলা দায়েরের পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও মামলার অগ্রগতি কিংবা আদালতে রিপোর্ট প্রদান না করায় মামলার বাদী ২ সন্তানের জননী সালমা বেগম এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।

অভিযোগে জানাযায়, বড়বন্দ ২য় খন্ড গ্রামের মঈনুল হক প্রবাসে থাকায় তার স্ত্রী সালমা বেগম দুটি সন্তান নিয়ে স্বামীর বাড়ীতে বসবাস করছেন। এতে একই গ্রামের হরমুজ আলীর পুত্র এনামুল হক ও ইয়ানিছ আলীর পুত্র নাছির উদ্দিন সালমা বেগমের কাছে গত ৮ অক্টোবর ১ লক্ষ টাকার চাঁদা চায়। এতে চাঁদা না পাওয়ায় তারা সালমা বেগমের বসত বাড়ীতে রোপনকৃত বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় শতাধিক গাছের চারা কেটে দেয়। এতে সালমা বেগম গ্রামবাসীর কাছে বিচার প্রার্থী হলে তারা ঐদিন রাত অনুমান ৯টায় সালমা বেগমের বাড়ীতে গিয়ে বসত ঘরের দরজায় লাতালাথি শুরু করে। এতে সালমা বেগম ঘরের দরজা খুলে দিলে তারা তাকে টেনে হেচড়ে ঘরের উঠানে নিয়ে এসে শ্লিলতাহানীর চেষ্টা করে। এসময় সালমা বেগম সুর-চিৎকার দিলে তারা জোরপুর্বক তার গলার দেড় তুলা ওজনের স্বর্নের চেইনটি ছিড়ে নিয়ে যায়।

এঘটনায় সালমা বেগম কানাইঘাট থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এতে সালমা বেগম একই বাড়ীতে একা হওয়ায় এবং প্রতিপক্ষের লোকজন জনে বলে বলবান হওয়ায় গ্রামবাসী বিষয়টি সালিশে নিষ্পত্তি করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু পরবর্তিতে গ্রামবাসী বিষয়টি সালিশে নিষ্পত্তি করে দিতে না পারায় সালমা বেগম অসহায় হয়ে গত ১৩ অক্টোবর সিলেটের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২১৭/২০২০ইং।

সরেজমিনে গেলে সালমা বেগম বলেন, আমার স্বামী সৌদিআরবে করোনা মহামারির সময়ে খুবই কষ্টে দিন যাপন করছেন। এদিকে আমি আমার দু’জন সন্তান নিয়ে অভাবী সংসারে কোন ভাবে দিনাতিপাত করছি। আমার পিতার বাড়ী পাশর্^বর্তী বিয়ানীবাজার উপজেলায়। তিনি বলেন, দুর্বৃত্তরা পাশর্^বর্তী বাড়ির সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোকজন হওয়ায় আমার জান-মালের নিরাপত্তা এবং বাড়ীর গাছপালা কাটা ও স্বর্নের চেইনটি ফেরৎ পাওয়া সহ ন্যায় বিচারের জন্য গ্রামের মুরব্বীদের ধারে ধারে ঘোরে ব্যর্থ হয়ে আদালতের স্বরনাপন্ন হয়েছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম বলেন, গাছের চারা কাটার বিষয়ে সালমা বেগম আমাদের কাছে বিচার প্রার্থী হয়েছিল। কিন্তু প্রতিপক্ষ স্থানীয় সালিশ বিচার না মানায় আমরা বিষয়টি নিষ্পত্তি করে দিতে পারিনি। তিনি বলেন, সালমা বেগমের এখানে কোন আত্মীয় স্বজন না থাকায় তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বলে যে অভিযোগ করেছেন তা একেবারেই সত্য।

এবিষয়ে আলাপকালে কানাইঘাট থানার এসআই মাঈনুল ইসলাম বলেন, সালমা বেগম আদালতে যে মামলা দায়ের করেছিলো সেই অভিযোগটি আমি সরেজমিনে তদন্ত করেছি। তিনি বলেন, মামলার তদন্ত প্রতিবেদন যথাসময়ে আদালতে প্রদান করবো। এছাড়া মামলায় অভিযুক্তরা যদি বাদীনীকে নতুন করে কোন ভয়ভীতি প্রদর্শন করে সেই বিষয়টিও আমরা তদন্ত করে দেখবো। 

এদিকে সালমা বেগমের অভিযোগটি আমলে নিয়ে ন্যায় বিচার প্রদানের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকার সচেতন মহল।

পটিয়ার খুইল্যা মিয়া চৌধুরী ইন্তেকাল,বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ

পটিয়ার খুইল্যা  মিয়া চৌধুরী ইন্তেকাল,বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ

সেলিম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টারঃ জাতীয় ছাএসমাজ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সাবেক সভাপতি  শাহাদাত হোসেন  চৌধুরী হিরো এবং ঢাকা মহানগর উত্তরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ  সম্পাদক শওকত চৌধুরী টিপু, পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শহীদুল আলী চৌধুরী মঞ্জু, জেদ্দা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগে সহ সভাপতি মহাব্বত আলী চৌধুরীর পিতা হাজী খুইল্যা মিয়া চৌধুরী গতকাল রবিবার বিকেলে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহির রাজিউন) মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ১০১ বৎসর। এ সময় তিনি ৪ পুত্র ও ১ কন্যা সন্তান সহ বহু আত্বীয় স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে যান। আজ জোহরের নামাজের পর পটিয়ার খরনা বায়তুন নুর জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে তার। নামাজের জানাজা অনুষ্টিত হবে।


তার মৃত্যুতে জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী এমপি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী,  জাতীয় পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক পটিয়া পৌর মেয়র শামসুল আলম মাষ্টার, উপজেলা জাতীয় পার্টি সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রফিক আহমদ চেয়ারম্যান, পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ ক ম সামশুজ্জমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশীদ, ঢাকাস্থ পটিয়া সমিতির সভাপতি মাহবুবুর আলম, সহ সভাপতি মামুনুর রশীদ, দক্ষিণ জেলা যুবলীগ সভাপতি আ ম ম টিপু সোলতান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক পার্থ সারথী চৌধুরী, উপজেলা যুবলীগ আহবায়ক হাসান উল্লাহ চৌধুরী, পটিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি এসএমএকে জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক আবদুল হাকিম রানা, সাংবাদিক সমিতির সভাপতি নুরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এটিএম তোহা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেলিম চৌধুরী, পটিয়া পৌরসভা জাতীয় পার্টি সভাপতি সাবেক কমিশনার নুরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমদ, দক্ষিণ জেলা জাতীয় ছাএসমাজ আহবায়ক এন এম জসিম উদ্দিন      সহ নের্তৃবৃন্দ পৃথক পৃথক বিবৃতিতে গভীর শোক প্রকাশ করেন। তারা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা ও শোকাহত পরিবার বর্গের প্রতি সমবেদনা জানান।