মোংলা পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি মো: মমতাজুল ইসলামের ইন্তেকাল

মোংলা পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি মো: মমতাজুল ইসলামের ইন্তেকাল

 


মোংলা প্রতিনিতিঃ মোংলা পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি মো: মমতাজুল ইসলাম (৮২) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাহি রাজিউন)। বাধক্যজনিত কারণে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টা ৪৫ মিনিটের সময় পৌর শহরের রাজ্জাক সড়কস্থ তার নিজ বাড়ীতে মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৪ পুত্র ও ৫ কন্যাসহ আত্মীয়-স্বজন এবং অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। শুক্রবার বিএলএস জামে মসজিদ চত্বরে মরহুমের জানাযা নামাজ শেষে পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। মরহুমের জানাযায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ বিপুল সংখ্যক লোকজন অংশ নেন। মরহুম মমতাজুল ইসলাম ছিলেন পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি ও ৫ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি। রাজনীতির পাশাপাশি ছিল বিভিন্ন ব্যবসাও। পৌর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত সুনামধন্য ‘হোটেল প্যারাডাইসথর মালিকও ছিলেন তিনি। তিনি ছিলেন একজন ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া প্রেমী। বিএনপি নেতা মরহুম মমতাজুল ইসলামের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বাগেরহাট জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক লায়ন ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম, মোংলা পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো: জুলফিকার আলী, বিএনপি নেতা এমরান হোসেন, মাহবুবুর রহমান মানিক, বাবুল হোসেন রনি, আ: সালাম ব্যাপারীসহ থানা ও পৌর বিএনপিসহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। 

বাজার মানব কল্যাণ সংস্থার নবগঠিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন

 বাজার মানব কল্যাণ সংস্থার নবগঠিত কমিটির  অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন

মোঃরেজাউল ইসলাম শাফি, কুলাউড়া উপজেলা প্রতিনিধিঃশিক্ষা, ঐক্য, মানবতা,  এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে চৌধুরী বাজার মানব কল্যাণ সংস্থার  কমিটি গঠন করা হয়। তার ধারাবাহিকতায়  চৌধুরী বাজার মানব কল্যাণ সংস্থার আয়োজনে অভিষেক ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের  আয়োজন করা হয় (২৭ নভেম্বর) শুক্রবার বিকাল ৪ ঘটিকায়  স্থানীয় চৌধুরী বাজারে , সংগঠনের সভাপতি আহমদ হোসেন জামালের সভাপতিত্বে  সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম জুয়েলের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাউৎগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল জামাল, সংবর্ধিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  সংগঠনের উপদেষ্টা রুহুল আমিন, শেখ লুৎফুর রহমান, তাজুল ইসলাম, এস রুজেল আহমদ, রাসেল হুসাইন , রুমন আহমদ,এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন  চৌধুরী বাজার মানব কল্যাণ সংস্থার সিনিয়র সহ সভাপতি নুরুল ইসলাম, আসিফ 
 আহমদ,সহ সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল জুনেদ, গোলাপ খান, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ চৌধুরী সাব্বির, রুমেল আহমদ, জেবুল আহমদ,পাবেল খান, ইমন আহমদ, হুসাইন  আহমদ , শিমুল আহমদ, সালাউদ্দিন আহমেদ, সাদিক আহমদ প্রমুখ।

লাকসাম পরিত্যাক্ত ডোবার থেকে কিশোরের লাশ উদ্ধার

লাকসাম পরিত্যাক্ত ডোবার থেকে কিশোরের লাশ উদ্ধার

লাকসাম, কুমিল্লা জেলা  প্রতিনিধিঃকুমিল্লার লাকসাম পৌরশহরের কোমারডোগা এলাকা থেকে নিখোঁজের ৭২ঘন্টা পর আজাদ আহম্মেদ মুন্না (১৩) নামে এক কিশোরে মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। সে সিলেট সুনামগঞ্জ দোয়ারা বাজার উপজেলার বড়হরি গ্রামে মঞ্জিল মিয়ার ছেলে। বর্তমানে পিতা-মাতার সহ প্রায় ১বছর যাবৎ তার নানার বাড়ী গন্ডামারায় তারা বসবাস করছে। শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সকালে থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করে।


আত্মীয় সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে মুন্না তার আত্মীয় স্থানীয় বাসিন্দা পিকআপ ড্রাইবার জাহিদের গাড়ি পরিস্কার শেষে বাড়িতে গিয়ে ফুচকা খাওয়ার জন্য মায়ের কাছ থেকে ২০টাকা নিয়ে বাহির হয়ে আর ঘরে ফিরেনি । পরিবার সদস্যরা ওইদিন বিকেল থেকে মুন্না বাড়িতে না ফেরায় অনেক খোঁজাখুঁজির পর তার মা মনোয়ারা বেগম বুধবার সকালে লাকসাম থানায় একটি সাধারণ ডাইরী রুজু এবং সমগ্র এলাকায় মুন্না নিখোঁজের মাইকিং প্রচার করে।

দীর্ঘ ৭২ ঘন্টা মুন্না নিখোঁজের কোন সংবাদ পায়নি স্বজনরা। অবশেষে শুক্রবার সকালে এলাকার ছেলেরা ক্রিকেট খোলার সময় ক্রিকেট বলটি কোমারডোগা গ্রামের ছোবহান মিয়ার ডোবায় পড়ে গেলে বলটি তুলতে গিয়ে ১টি মরদেহ দেখতে পায়। তখন ওইসব ছেলেরা চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে মরদেহটি চিনতে পেরে স্বজনদের খবর দেয়। স্বজনরা ঘটনাস্থলে এসে পুত্রকে চিনতে পেরে তাৎক্ষনিক শোকে আত্মচিৎকার শুরু করলে কিছুক্ষনের জন্য সমগ্র এলাকা স্তব্ধ হয়ে পড়ে।


এ ঘটনাটি একটি হত্যাকান্ড বলে ওই কিশোরের স্বজনরা জানায়। সংবাদ পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে কিশোর মুন্নার মরদেহ উদ্ধার করে।


শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় মরদেহটি উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।


স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, ঐ ডোবার পাশে পরিত্যাক্ত একটি মাঠে প্রতিনিয়ত ফুটবল/ক্রিকেট খেলা নিয়ে ঝগড়া/মারা-মারির ঘটনা ঘটে আসছে। ওই মাঠ নির্জন থাকার কারণে সন্ধার পর মাদকের হাট বসে এবং বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত বিভিন্ন বয়সী নারীদের আনা ঘোনা চলে আসছে। স্থানীয় ভাবে একাধিক বার ওই সব অনৈতিক কর্মকান্ড প্রতিহতের উদ্দ্যোগ নিলেও এলাকার কতিপয় ব্যক্তির কারনে তা বন্ধ হচ্ছে না। মুন্নার মৃত্যুকে একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে অভিমত দেন এলাকাবাসী। তবে কেউ কেউ এ ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে বলছেন ভিন্ন কথা।


স্থানীয়, ওয়ার্ড কাউন্সিলর ওমর আলী জানায়, বিভিন্ন মাধ্যমে মরদেহ পাওয়ার খবর শুনে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে যাই। এবং বিস্তারিত অবগত হই। তবে হত্যাকান্ডের পাশা-পাশি বিদ্যুৎ বিভাগের দায়িত্বহীনতাকে দায়ী করা সহ ময়না তদন্ত রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে এ ঘটনাটি পরিস্কার হবে বলে মনেকরি।


লাকসাম থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নিজাম উদ্দীন জানান, মরদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নে গনসংযোগ করেন এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান

গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নে গনসংযোগ করেন এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান


স্টাফ রিপোর্টারঃ আজ (২৭ শে নভেম্বর ) শুক্রবার  সন্ধা ৬ টার পর  থেকে  রাত ৮ টা পর্যন্ত   যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলাধীন ১ নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন এর ৭ নং ওয়ার্ডের কাগমারী গ্রামের  দাসপাড়ায়  চায়ের দোকান, মন্দির সহ জনগুরুত্বপূর্ণ এলাকায়   গনসংযোগ করেন ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান এমপি প্রতিনিধি আমিনুর রহমান। 
এসময় তার সাথে ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুস সামাদ, আওয়ামী লীগ নেতা মহর আলী,আবুল কালাম,বাবুল আক্তার, আক্তারুল  ইসলাম,আবুল ফজল, আব্দুর গফুর, আহাদ,ইমামুল হক, শহীদ, নিমাই চন্দ্র, নজরুল ইসলাম,আঃ খালেক,    কার্তিক,ইয়াজুল ইসলাম (বাকের), আবু তাহের, ফহিম বক্স, তোতা, আঃ গনি, মহসীন প্রমুখ। 


এসময় তিনি সকলের সাথে কুশল বিনিময় করেন এবং আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তার পক্ষে দোয়া ও সমার্থন চান। 

আশাশুনির কুঁন্দুড়িয়ায় প্রাক্তন প্লেয়ারদের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

আশাশুনির কুঁন্দুড়িয়ায় প্রাক্তন প্লেয়ারদের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

আহসান উল্লাহ বাবলু আশাশুনি সাতক্ষীরা  প্রতিনিধি:
আশাশুনির কুঁন্দুড়িয়া পি এন মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে প্রাক্তন প্লেয়ারদের অংশ গ্ৰহনে ৫০ ঊর্ধ্ব এবং পাইথালী মিলন মহল যুব সংঘের প্রাক্তন প্লেয়ারদের সমন্বয়ে গঠিত দলের মধ্যে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার বিকাল ৪টায় ঐতিহ্যবাহী কুঁন্দুড়িয়া পি এন মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে পাইথালী মিলন মহল যুব সংঘের আয়োজনে আয়োজিত খেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আবম মোসাদ্দেক, বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, তরুন উদীয়মান রাজনীতিবীদ এম ডি ফিরোজ আহমেদ, ইউপি সদস্যর মতিয়ার রহমান, মোঃ আলতাফ হোসেন, গ্ৰাম আদালতের সমন্ময়ক রবিউল ইসলাম তোতা প্রমূখ।

হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে মনোমুগ্ধকর ভিন্নধর্মী এই প্রীতি ফুটবল খেলায় ৫০ ঊর্ধ্ব দল ১-০ গোলের ব্যবধানে পাইথালী মিলন মহল যুব সংঘ দলকে পরাজিত করে।

কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী নাজিম উদ্দীন নাজু

 কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী নাজিম উদ্দীন নাজু

সেলিম চৌধুরী,  স্টাফ  রিপোর্টারঃচট্টগ্রামের প্রথম শ্রেণীর পটিয়া পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড একটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ডে  অবস্থিত  হযরত শাহচান্দ আউলিয়ার মাজার ছাড়াও পিটিআই ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে। রয়েছে পটিয়া পৌরসভার কার্য়লয় ও পটিয়া জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত, পটিয়া বিসিক শিল্পনগরীসহ শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর বসবাস সহ অনেক    জ্ঞানীগুনি শিক্ষাবিদ রাজনৈতিক নেতা ব্যাবসায়িসহ সরকারি বেসরকারি নেতাদের বাসস্থান।  আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচন আওয়ামীলীগের সমর্থনে  ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে    নির্বাচন  করা জন্য মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন ৭নং ওয়ার্ডের আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ও পটিয়া পৌরসভা আওয়ামী যুবলীগের সহ সম্পাদক আওয়ামী যুবলীগের তূর্ণমূল থেকে উঠে আসা লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে নির্যাতিত ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দিন নাজু।


জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ্ব শামসুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে  ৭ নং ওয়ার্ডে  বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়ন ও  জনগণের  সেবা নিশ্চিত করতে  নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নে সমর্থন  প্রত্যাশি নাজিম উদ্দীন নাজু। নাজিম  জানান,  সাধারণ মানুষের  বিভিন্ন সরকারি  সেবা নিশ্চিত করতে আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় সমর্থনে প্রতিদ্বন্ধিতা করে কাউন্সিলর হতে চায় । পটিয়ার এমপি জাতীয় সংসদের মাননীয়  হুইপ আলহাজ্ব শামসুল হক চৌধুরী নির্দেশে দীর্ঘদিন ধরে ছাএলীগ থেকে শুরু করে যুবলীগ রাজনীতির সাথে জড়িত। ১৯৯৬ সাল থেকে আজ পর্যন্ত দলের জন্য কাজ করেছি। দলের জন্য কাজ করতে গিয়ে মামলা হামলা নির্য়াতনের শিকার হয়েছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব। ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী যুবলীগ সভাপতি নাজিম উদ্দীন নাজু বলেন,আমি এলাকার বিভিন্ন  সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত। বিগত সময়ে বিভিন্ন   আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে ছিলাম  দলের সিদ্ধান্ত মেনে নির্বাচন করব ।  তিনি বলেন,  দল যদি চায় নির্বাচন করতে  সর্বোচ্চ  প্রস্তুত রয়েছি। তবে  দলীয় সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত। নাজিম  বলেন, পটিয়া পৌরসভার মধ্যে ৭নম্বর ওয়ার্ডকে একটি আধুনিক মডেল ওয়ার্ড হিসাবে গড়ে তুলতে এবং সাধারণ মানুষের সেবা নিশ্চিত করতে  দারিদ্রদের মধ্যে যে কোন  জিনিস পত্র বিতরণ কিংবা দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করতে  তিনি নির্বাচন করতে আগ্রহী। নাজিম আরোও জানান আমরা সুসময় জন্য দল করেনি দলের স্বার্থ সংরক্ষণ জন্য জীবন বাজি রেখে সংগঠন করেছি অনেকবার বিএনপি জামাত জোট সরকারে  শাসনআমলে অনেকবার   মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হয়েছে।করোনাভাইরাস শুরু থেকে এখন পর্যন্ত গরীব, দুঃখী, মেহনতী অসহায় দিনমজুর মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ  এবং  দুর্গাপুজায়  সহযোগিতা করেছি।  জনগণকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করা হবে জানিয়ে পৌরসভা যুবলীগ সহ সম্পাদক  নাজিম বলেন, জাতীয়   সংসদের হুইপ পটিয়ার এমপি  আলহাজ্ব   সামশুল হক চৌধুরীর সহযোগিতায় বিগত ১২ বছরে পটিয়ায়   হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে। এই উন্নয়নের  ধারাবাহিকতা অব্যহত রাখতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানিয়ে   তিনি সকলের সহযোগিতা   দোয়া  ও আশীর্বাদ কামনা  করেন.

স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধুমাত্র সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজা ও পূণ্যস্নানে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

 স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধুমাত্র সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজা ও পূণ্যস্নানে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃকরোনা পরিস্থিতির কারণে এবার সুন্দরবনের দুবলার চরে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী রাস উৎসব বা মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। মেলার পরিবর্তে শুধুমাত্র সনাতন (হিন্দু) ধর্মাবলম্বীদের রাস পূর্ণিমার পূজা ও পূণ্যস্নানে অংশগ্রহণের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে রাস পূজা ও পূণ্যস্নানে অংশ নেয়ার জন্য মোংলাসহ সুন্দরবন অঞ্চলের সনাতন ধর্মালম্বী লোকজন বন বিভাগের দেয়া সকল শর্তবিধি মেনে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। অপরদিকে পরিবেশবাদীরা এবার সীমিত আকারে রাস পূজার অনুমতি দেয়ায় বন বিভাগকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের কাছে এক আকর্ষণীয় উৎসবের নাম সুন্দরবনের দুবলার চরের আলোর কোলের রাস মেলা বা উৎসব। সনাতন (হিন্দু) ধর্মাবলম্বীদের পূজা অর্চনা ঘিরে এই রাস মেলা অনুষ্ঠিত হলেও ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে প্রতিবছর হাজার হাজার মানুষ এই মেলায় অংশগ্রহণ করেন।

প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতসহ বিদেশ থেকেও অনেক ভক্ত ও দর্শনার্থীরা আসেন এই মেলায়। করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার শর্ত সাপেক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধুমাত্র সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজা ও পূণ্যস্নানে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আগামী  ২৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় সুন্দরবনের দূবলার চরে রাস পূজা ও ৩০ নভেম্বর সকালে দূবলার চর সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে পুণ্যস্নানের মাধ্যমে রাস পূজা শেষ হবে। ২৮ নভেম্বর ভোর থেকে পূজারীরা সুন্দরবনের দুবলার চরের আলোর কোলের উদ্দেশ্যে ট্রলার ও নৌকা নিয়ে রওনা দিবেন। এর আগে ২০১৯ সালে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে কারণে রাস পূজা ও পূণ্যস্নান উপলক্ষে কোনো মেলা বা উৎসব হয়নি।

প্রতিবছর রাস উৎসব বা মেলায় অংশ নেবার নামে এক শ্রেণির অসাধু লোক সুন্দরবনের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে হরিণ ও নানা বন্যপ্রাণী শিকারসহ জীব বৈচিত্রের নানা ধরনের ক্ষতি সাধন করে আসছিল। এবার সীমিত আকারে রাস পূজার অনুমোদন দেওয়ায় বন্যপ্রাণী নিধন ও পরিবেশের ক্ষতি অনেকটাই হ্রাস পাবে বলে মনে করছেন পরিবেশবাদিরা।

বারবাজার হাইস্কুলে ”মুজিব শতবর্ষ স্মরনে” বিশেষ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান

বারবাজার হাইস্কুলে ”মুজিব শতবর্ষ স্মরনে” বিশেষ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান



খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার,খুলনা ব্যুরো প্রধান:ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে হাটবারবাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মুজিব শতবর্ষ স্মরনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রাত্যহিক সমাবেশে বঙ্গবন্ধুর স্মরনে নিয়মিত শপথবার্তা পাঠের লক্ষে বিশেষ ম্যাগাজিন ও শুটিং অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।
"প্রজন্মের শপথ-বঙ্গবন্ধু তোমায় মনে রাখবো"  এই গানকে সামনে রেখে শুক্রবার সাকালে হাট বারবাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে বিদ্যালয় প্রঙ্গনে এক বিশেষ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষে প্রথমে কেক কেটে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়। পরে শান্তির প্রতিক কবুতরের পায়ে জন্মবার্তা পাঠানো ও শিক্ষার্থীদের পাঠ শেখানো, জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে বিজয়বার্তা পাঠানো, শপথবার্তার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিত্বে পূষ্পমাল্য অর্পন, শপথ গান বঙ্গবন্ধু তোমায় মনে রাখবো, কবিতা অবৃতি এবং শিক্ষার্থীদের স্কুল পোশাক বিতরন করা হয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও বারবাজার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মাহবুবার রঞ্জুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার, বিশেষ অতিথি হিসাবে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিদ্দিকী ঠান্ডু, ভাইস চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী। 

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, যশোর টিচার্স ট্রেনিং কলেজের অধ্যক্ষ, প্রফেসর ড. জয়নাল আবেদীন খান, কালীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মধুসুদন সাহা, দ্যা অ্যাপারেল নিউজের সম্পাদক ও সভাপতি অমিত কুমার বিশ্বাস, সাংবাদিক হাবিব ওসমান, সুজন হোসেন প্রমূখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি আপনার বলেন, বঙ্গবন্ধুর জীবনী, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ও গৌরবগাঁথা যথাযথভাবে পৌঁছে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ  এই তিনটি শব্দ একই সুতোয় গাঁথা। বাঙ্গালীর ইতিহাসের মহানয়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী নতুন প্রজন্মকে জানাতে শিক্ষকদের প্রতি আহবান জানান।  বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রয়েছে চিরন্তন প্রেরণার উৎস। তরুণ প্রজন্ম যেন সেই ইতিহাস সঠিকভাবে অনুধাবন করে আর বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পথে নিজেদেরকে পরিচালিত করার মতো পাঠদান করবে এমনটি আশা করেন তিনি।

দিনাজপুরে জমি-জমার বিরোধে দেশীয় অস্ত্রের কোপে নিহত-১

দিনাজপুরে জমি-জমার বিরোধে দেশীয় অস্ত্রের কোপে নিহত-১

মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি ঃ দিনাজপুরের বিরলে ভাই ভাইয়ে জমি-জমার পূর্ব বিরোধে ধান কাটতে বাঁধা দেয়ায় দেশীয় অস্ত্রের কোপে নিহত হয়েছে একজন। পুলিশ একটি দেশীয় অস্ত্র (হাসুয়া) উদ্ধার করেছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
শুক্রবার দুপুরে উক্ত জমিতে থাকা ধান আব্দুল কাদের কেটে শুকাতে দেয়ার পর অপর ভাই আবুল হোসেন বাবু'র রোপিত ধান ক্ষেত আরেক ভাই রোস্তম আলী তাঁর স্ত্রী সন্তানসহ ভাড়াটে লোকজন নিয়ে কাটতে যায়। এ সময় আব্দুল কাদের ও আবুল হোসেন বাঁধা দিতে গেলে তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে মারপিট শুরু হয়। মারপিটের এক পর্যায়ে রোস্তম আলীর ছেলে নাঈম ইসলাম (৩৫) ধারালো দেশীয় অস্ত্র (হাসুয়া)'র কোপ দিলে আব্দুল কাদের রক্তাক্ত জখম হোন। 
এসময় আত্মচিৎকারে পরিবারের অন্যান্য লোকজনসহ প্রতিবেশিরা এগিয়ে এলে নাঈম ইসলাম ও তাঁর পিতা রোস্তম আলী এবং মাতা নারগীস বেগম ও ভাড়াটে লোকজনগুলো পালিয়ে যায়। 
পরে তড়িঘড়ি করে আব্দুল কাদেরকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। 
বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাসিম হাবিব জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে একটি ধারালো দেশীয় অস্ত্র (হাসুয়া) উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে। মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

নগরকান্দায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধীর মানবেতর জীবনযাপন ভাগ্যে জুটেনি সরকারি কোন অনুদান

 নগরকান্দায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধীর মানবেতর জীবনযাপন ভাগ্যে জুটেনি সরকারি কোন অনুদান

 


ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার লস্করদিয়া ইউনিয়নের বারখাদিয়া গ্রামের দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী রোজিনা বেগম (৩৮)। স্বামী হামেদ শেখ (৫৫) একজন সামান্য বেতনের কেয়ারটেকার। ঘরে অসুস্থ শয্যাশয়ী বৃদ্ধা মা সহ পাঁচ সদস্যদের নিয়ে ভাঙ্গা একটি ছাপড়া ঘরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। এক বেলা খেলে অন্য বেলা তাদের থাকতে হয় উপোস।

সরকারের সাহায্য নিয়ে দুই বেলা খেয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখছেন তারা কিন্তু স্বপ্ন তাদের কাছে এখনও অধরা। একমাত্র উপার্জনক্ষম স্বামীর সামান্য বেতনের টাকায় অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটাতে হয় তাদের।

জন্মগতভাবে রোজিনা বেগম অন্ধ হলেও তিনি আজ পর্যন্ত পাননি কোনো প্রতিবন্ধীভাতা। সরকারি সহায়তার জন্য একাধিক বার জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোনো সুফল পাননি।

তাই দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রোজিনা বেগম মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি প্রতিবন্ধী ভাতা সহ থাকার জন্য একটি ঘরের দাবী জানিয়েছেন।

কয়রায় ৫ শ কৃষকের মাঝে সার ও বীজ বিতরন

কয়রায় ৫ শ কৃষকের মাঝে সার ও বীজ বিতরন


মোহাঃ ফরহাদ হোসেন  কয়রা(খুলনা)প্রতিনিধিঃ চলতি রবি মৌসুমে প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারনে ক্ষয়ক্ষতি পুষিতে নিতে এবং রবি মৌসুমে ফসলের উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে গোপালগঞ্জ জেলায় বিএআরআই এর কৃষি গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন ও দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের পরিবেশ-প্রতিবেশ উপযোগী গবেষণা কার্যক্রম জোরদারকরনের মাধ্যমে কৃষির উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে উপজেলার ৫০০ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মধ্যে বিনামূল্যে বোরো ধানের বীজ, আলু ও রবি মৌসুমের বিভিন্ন ফসলের বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল ১০ টায় মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের মাঠে বাংলাদেশ কৃষি গবেষনা ইনস্টিটিউট, সরেজমিন গবেষণা বিভাগ খুলনা এর আয়োজেন এ সব বীজ সার বিতরণ করা হয়। মহারাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান জিএম আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলুর সভাপতিত্বে এ উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা সরেজমিন গবেষণা বিভাগ খুলনা ড. হারুনর রশিদ। এমএলটি সাইট কযরার বৈজ্ঞানিক সহকারি জাহিদ হাসানের পরিচালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষকলীগের আহবায়ক প্রভাষক শাহাবাজ আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক এসএম হারুন অর রশদি, সাংবাদিক সদর উদ্দীন আহম্মেদ, ইউপি সদস্য আঃ অহিদ মোড়ল, আকবর ঢালী, মহিলা সদস্য নুরজাহান বেগম, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ। এ সময় প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা অনুযায়ী এক ইঞ্চি জমিও যেন খালী পড়ে না থাকে সেই লক্ষে প্রণোদনা দিচ্ছে বাংলাদেশ সরেজমিন কৃষি গবেষণা বিভাগ। কৃষি বান্ধব সরকার খাদ্য মোকাবেলায় বড় চ্যালেঞ্চ নিয়ে সরকার করোনাকালীন যেন খাদ্য ঘাটতি না ঘটে তাই বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে বীজ ও সার বিতরণ করা হচ্ছে। তিনি কৃষকদের উদ্যেশে আরও বলেন, রবি মৌসুমে কৃষকদের সর্বাত্তক প্রচেষ্টায় কয়রায় বিভিন্ন মাঠে ফসল ফলবে। সোনালী ধান , শীতকালীন সবজি, হলুদ ও সবুজের মিশ্রনে সরিষার ক্ষেত সহ অন্য ফসলে কয়রার মাঠ সোনালী ফসলে সবুজে সমারোহে ভরপুর যেন থাকে।

ঝিকরগাছায় মুদিখানা মালিক ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে মাস্ক বিতরন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত

ঝিকরগাছায় মুদিখানা মালিক ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে মাস্ক বিতরন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত

মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত , ঝিকরগাছা প্রতিনিধিঃ যশোরের ঝিকরগাছায় মুদিখানা মালিক ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে মাস্ক বিতরন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার সকাল ১০টায় ঝিকরগাছা বাজার কাপুড়িয়া পট্টিতে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে  প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম। বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্তিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান  সেলিম রেজা।
এছাড়াও ঝিকরগাছা উপজেলার সাবেক আওয়ামীলীগ নেতা আমিনুল কাদীর টুল্লু, বাংলাদেশ পূজা উর্যাপন পরিষদের সভাপতি দুলাল অধিকারী, ও ঝিকরগাছা বাজারের মুদি ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইনে কেনাকাটা এখন রত্না ফ্যাশন হাউজে

অনলাইনে কেনাকাটা এখন  রত্না ফ্যাশন হাউজে

যারা অনলাইনে কেনাকাটা করতে চান তারা এখনি ঘুরে আসতে পারেন  রত্না ফ্যাশন হাউজ এখানে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের রুচিশীল প্রডাক্ট প্যান্ট  টি-শার্ট জ্যাকেট পাঞ্জাবি কাবলি থ্রি পিস পলোসার্ট শাড়ি  লেহেঙ্গা বিছানার চাদর অন্যান্য প্রোডাক্ট

ঝিকরগাছার কৃতি সন্তান আনোয়ার হোসেনকে প্রেসিডিয়াম সদস্য করায় আনন্দ র‌্যালী

ঝিকরগাছার কৃতি সন্তান আনোয়ার হোসেনকে প্রেসিডিয়াম সদস্য করায় আনন্দ র‌্যালী


মোঃ মতিয়ার রহমান , ঝিকরগাছা প্রতিনিধি  : ‘গৌরব, ঐতিহ্য, সংগ্রাম ও সাফল্যের’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান আনোয়ার হোসেনকে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মনোনিত করাই, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে আনন্দ র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার ১নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ সকল অঙ্গ সংগঠনের আয়োজনে গঙ্গানন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ হতে আনন্দ র‌্যালীটি বের হয়ে ছুটিপুর বাজার হয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান প্রদক্ষিণ করে আবারও  প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে সংক্ষিপ্ত আলোচনাসভার মধ্যদিয়ে আনন্দ র‌্যালীর পরিসমাপ্তি ঘটে। গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান ঝন্টুর সভাপতিত্বে আনন্দ র‌্যালীতে উপস্থিত ছিলেন, সহ সভাপতি বীরমুক্তীযোদ্ধা আবদার রহমান, মতিয়ার রহমান, সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান বদরউদ্দীন বিল্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আদম আলী, সহ সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সালাউদ্দিন বাবু, প্রচার সম্পাদক আজগর আলী, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক কওসার আলী, ইউনিয়ন যুবলীগের আহব্বায়ক গোরা চাঁদ চক্রবর্তী , যুগ্ম আহব্বায়ক বাবলুর রহমান, ময়েজ উদ্দিন আহমেদ, লতিফুর কবির মিলন, সদস্য রাজু আহমেদ, ফিরোজ উদ্দীন, মফিজুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম, ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আফতাব উদ্দীন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বিনামূল্যে ডায়াবেটিস পরীক্ষা ও চক্ষু সেবা প্রদান

 ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আফতাব উদ্দীন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে  বিনামূল্যে ডায়াবেটিস পরীক্ষা ও চক্ষু সেবা প্রদান

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃঝিনাইদহের শৈলকুপায় আফতাব উদ্দীন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ১ হাজার রোগিকে বিনামূল্যে ডায়াবেটিস পরীক্ষা ও চক্ষু সেবা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে শৈলকুপা উপজেলার পিড়াগাতি গ্রামে দিনব্যাপী এ সেবার আয়োজন করা হয়।

আফতাব উদ্দীন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান জানান, দিনব্যাপী এলাকার ১ হাজার নারী পুরুষকে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে চক্ষুসেবা ও ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা হয়েছে। এসময় ডায়াবেটিস পরীক্ষা ও চক্ষু সেবা প্রদান করেন ডা. মেজবাহুল আজম, ডা. মেহেদী হাসান, ডা. আরাফাত হোসেন, ডা. নাসিরুল ইসলাম লিমন, রবিউল ইসলাম, জিয়াউর রহমানসহ ১০ জন চিকিৎসক। অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা ও সমাজ সেবক আলমগীর হোসেন। পরে বাছাইকৃত রোগিদেরকে ছানি অপারেশনসহ বিনামূল্যে চশমা প্রদান করা হবে বলেও জানান আয়োজকরা। উল্লেখ্য বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আফতাব উদ্দিন স্মৃতি ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠার পর থেকে এলাকার স্বাস্থ্যসেবা সহ সকল প্রকার উন্নয়ণমূলক কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছেন।

আরও পড়ুনঃ   ঝিনাইদহে আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন

ঝিনাইদহে আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন

ঝিনাইদহে আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃঝিনাইদহ আইনজীবী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত বার ভবনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবার  মধ্য রাতে নির্বাচন কমিশনার এ্যাড. আজিজুর রহমান এ ফলাফল ঘোষণা করেন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্যানেল সভাপতিসহ ১৩ টি পদে জয়ী হয়েছেন। অন্য দিকে বিএনপি মনোনীত প্যানেল সাধারণ সম্পাদকসহ ৬ টি পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

সভাপতি পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত এ্যাড. খান আখতারুজ্জামান ও বিএনপি মনোনীত সাধারণ সম্পাদক পদে এ্যাড. জাকারিয়া মিলন নির্বাচিত হয়েছেন।

সহ-সভাপতি পদে আব্দুল খালেক-১, সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে আব্বাস উদ্দিন, হিসাব নিরীক্ষক পদে আব্দুল খালেক সাগর, সাহিত্য ও গ্রন্থাগার সম্পাদক পদে আব্দুল আলিম-৩, ক্রীড়া ও প্রমোদ সম্পাদক পদে গৌতম কুমার বিশ্বাস, ধর্মীয় ও আপ্যায়ণ সম্পাদক পদে জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক পদে শাহিনুল ইসলাম শাহিন,  সদস্য পদে মীর সাখাওয়াত হোসেন, হাবিবুল্লাহ বাহার, মঞ্জুরুল ইসলাম, সুভাষ বিশ্বাস মিলন, আসাদুজ্জামান বাবু, আ,ম সোহানুর জোয়ার্দ্দার সাথী, বীনা খাতুন, মুশফিকুর ওয়ালিদ ইমরোজ, মুস্তাফিজুর রহমান মিথুন।

নির্বাচন কমিশনার এ্যাড. আজিজুর রহমান জানান, ভোট গ্রহণ শেষ হয়ে রাত ১ টার দিকে বেসরকারি ভাবে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। মোট ভোটার সংখ্যা ২৭৩ জন। এর মধ্যে ২৭১ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

আরও পড়ুনঃ   ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আফতাব উদ্দীন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বিনামূল্যে ডায়াবেটিস পরীক্ষা ও চক্ষু সেবা প্রদান

কাজী মোঃ এয়াকুব আজও স্মৃতির মিনারে চির অম্লান

কাজী মোঃ এয়াকুব আজও  স্মৃতির মিনারে চির অম্লান

সেলিম   চৌধুরী, স্টাফ  রিপোর্টারঃ-মরহুম কাজী মোঃ এয়াকুব এর আগামী ৯ই ডিসেম্বর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজকে দুই কলম লিখতেছি, কাজী সাহেব আমাকে নিজের ছোট ভাইয়ের মত ভালবাসতেন, দীর্ঘ দিন তাঁর সাথে চলার পথে আমি দেখেছি জাতীয়তাবাদী রাজনীতিকে ধারণ করে চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় অসংখ্য নেতা-কর্মী সৃষ্টি করেছেন এবং সব সময় নেতা-কর্মীদের সুখ-দুঃখ ভাংগ করে নিতেন এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক কর্মীদের জন্য পটিয়া থানার মোড়ের ভাড়িটি ছিল অমূক্ত। আমি  চলার পথে দেখেছি সব সময় অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে ও আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে নেতা-কর্মীদের সাহস যোগিয়ে রাজপথে নেতৃত্ব  দিয়ে আন্দোলন সফল করতে। আমৃত্যু দল ও দেশের জন্য সংগ্রাম করে গিয়েছিল, বুকে আগলে রেখেছিল রাজপথে,১৯৮৭ সালে ছাত্র নেতা হিসেবে ঢাকা চলো আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিল ও ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরুদ্ধী গন আন্দোলনের সময় এরশাদের কথিত স্ত্রী মরিয়ম মমতাজের লিপলেট সহ লাল দিঘির পুরাতন গীর্জায় চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির অফিসের সামনে থেকে ডিবি পুলিশের কাছে গ্রেফতার হয়।কাজী এয়াকুব গন মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য সংগ্রাম করে গেছেন আজীবন।

পটিয়া থানার অন্তর্গত কচুয়াই গ্রামে ১৯৬৪ সালের ২৮ শে সেপ্টেম্বর রোজ রবিবার সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে মরহুম কাজী মোহাম্মদ ইউনুছ এর ঘরে জন্ম গ্রহন করেন।

কাজী মোঃএয়াকুব এর শিক্ষা জীবন শুরু হয় কচুয়াই মাতাদীনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে,অত্র বিদ্যালয় হতে ৩য় শ্রেণী পাশ পরিবর্তী ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণী মোহছেনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে প্রাথমিক পাশ শেষে পটিয়ার স্বনামধন্য এ,এস, রাহাত আলী উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৯৮০ সালে এস সি এবং দক্ষিন চট্টলার ঐতিহ্যবাহী পটিয়া সরকারী কলেজ থেকে এইচ এস সি ও ডিগ্রি পাশ করেন এবং পাশাপাশি আরবি শিক্ষাও গ্রহন করেন।তিনি লোহাগাড়া সিনিয়র মাদ্রাসা থেকে দাখিল ও আলিম এবং ওয়াজেদীয়া আলিয়া মাদ্রাসা পাঁচলাইশ থেকে কামিল পাশ করেন।

কাজী মোঃ এয়াকুব এর রাজনৈতিক জীবন এ,এস, রাহাত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে  অধ্যায়নত থাকা অবস্থায় হাতেখড়ি সংগঠনের মাধ্যমে ডানপন্থী ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ার মধ্য দিয়ে এবং তারই ধারাবাহিতায় ১৯৮০ সালে পটিয়া সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক পদে নির্বাচন করার মাধ্যমে ছাত্র রাজনীতিতে কাজী মোঃ এয়াকুবের উত্থান।১৯৮০-১৯৮৪ সালে পটিয়া কলেজ ছাত্র দলের সভাপতি এবং ১৯৮৫ সালের দক্ষিণ জেলা ছাত্র দলের আহবায়ক ও ১৯৮৭-১৯৯০ সাল পর্যন্ত দক্ষিণ জেলা ছাত্র দলের সভাপতি ছিলেন। ১৯৯১ হতে ১৯৯৫ সালে চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবদলের সভাপতি ও যুব দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন,১৯৯০ সালে স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে ডানপন্থী ছাত্র সংগঠন গুলো সংগ্রামী ছাত্র জোট গঠন করলে কাজী মোঃ এয়াকুবকে দক্ষিণ জেলা সংগ্রামী ছাত্র জোটের আহ্বায়ক নির্রবাচিত করা হয়। সংগ্রামী ছাত্র জোটের পাশাপাশি বাম ছাত্র সংগঠন গুলো দক্ষিণ জেলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে, আন্দোলনের গতি বাড়ানোর লক্ষ্যে সংগ্রামী ছাত্র জোট ও ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ের জন্য ১৯৯০ সালে দক্ষিণ জেলা উভয় সংগঠনের সমন্বয়কারী হিসাবে কাজী মোঃ এয়াকুবকে নির্বাচিত করেন।পরবর্তীতে পটিয়া থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য এবং দলীয় বিভিন্ন কমিটিতে ছিলেন।কাজী মোঃ এয়াকুব ছিলেন জাতীয়তাবাদী রাজনীতির নিবেদিত প্রান। পরবর্তীতে ২০০৬ সালে ড. কর্ণেল অলি আহমেদ বীর বিক্রম (অবঃ) লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি -এলডিপি গঠন করলে কাজী মোঃ এয়াকুব এলডিপিতে যোগদান করেন এবং এলডিপি'র পটিয়া পৌরসভার প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ও চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলার সহ-সভাপতি হন।পরবর্তীতে ২০১৭ সালে  পটিয়া পৌরসভা এল,ডি,পি'র সভাপতি নির্বাচিত হন।

কাজী মোঃএয়াকুব কলেজ পর্যায়ে ছাত্র রাজনীতি শুরু করে জেলা ও কেন্দ্রীয় রাজনীতিতেও প্রিয়মুখ  ছিলেন নেতা-কর্মীদের মাঝে। তিনি একজন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ব্যক্তিত্ব ছিলেন।একাধারে তিনি একজন, রাজনৈতিক নেতা,সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী।সদা কর্মচঞ্চল, মানবদরদি ও কর্মীবান্ধব  ব্যক্তিত্ব ছিলেন। সততা ও নিষ্ঠার মাধ্যমে আদর্শবান রাজনৈতিক ও সমাজসেবক কর্মী হিসেবে সবার কাছে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন।চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলা বা পটিয়া উপজেলায় জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে যদি কেউ এমন কোনো আদর্শবান রাজনীতিবিদ কিংবা সমাজসেবীর নাম বলতে চান তাহলে নিঃসন্দেহে তার নাম বলতে হবে। যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগে সাহায্যের হাত বাড়ানো এবং অসহায় মানুষের কল্যাণে এগিয়ে আসার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে একজন উঁচুমাপের সমাজসেবক হিসেবে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছিলেন।

 অসম্ভব মেধা, প্রচণ্ড আত্মবিশ্বাস ও সময়োপযোগী কর্মোদ্যগের মাধ্যমে বহু আগেই সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন। তিনি দলের ক্রান্তিকালে কেন্দ্রীয়  নির্দেশ পালনের মাধ্যমে দক্ষিণ জেলা ও পটিয়া বিএনপির নেতা-কর্মীদের সুসংগঠিত করতে চেষ্টা করেছেন। সামরিক শাসন আর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে রাজপথে ছিলেন।স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের সময়,হামলা-মামলা-নির্যাতন- জেল জুলুম সহ্য করে তিনি এক এক করে কর্মীদের প্রিয় মুখ হয়ে উঠেছিল আজ তিনি আমাদের মাঝে নেই...

আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করি আল্লাহ ভাইয়ের জীবনের সমস্ত গুনহ মাপকরে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন..আমিন। লেখাগুলো লিখেছেন সাইফুর রহমান, সদস্য লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি, 
চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলা।

চলনবিল কৃষকের উন্নয়নে সরকার ৬ শ কোটি টাকা ব্যয়ে চলনবিল প্রকল্প দিয়েছেন-পলক

চলনবিল কৃষকের উন্নয়নে সরকার ৬ শ কোটি টাকা ব্যয়ে চলনবিল প্রকল্প দিয়েছেন-পলক




রাজু আহমেদ, নাটোর: 
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন,
সরকার ৬শ কোটি টাকা চলনবিল প্রকল্প দিয়েছেন। কৃষি ও কৃষকদের উন্নয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনা সবসময় পাশে আছে, থাকবো। আমার গ্রাম, আমার শহর প্রকল্পে সিংড়ার গ্রাম গুলো মডেলে পরিনত হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বৈরি অবস্থার মধ্য দিয়ে আমরা কাজ করছি। করোনার বিপর্যয়ে শক্তিশালী অর্থনৈতিক দেশ ও বিপর্যস্ত। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দুর্দর্শিতায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ৯ কোটি মানুষ মোবাইল একাউন্ট ব্যবহার করছে। ১১ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা ভোগ করছে মানুষ।

তিনি আরো বলেন, জীবনের ঝূঁকি নিয়ে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ এবং জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, সরকারী কর্মকর্তা কাজ করছে। ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে আমরা প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাচ্ছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সারাদেশে বিনামূল্য সার,বীজ সহ অন্যন্যে উপকরণ বিতরন করা হচ্ছে। 

প্রতিমন্ত্রী শুক্রবার সকাল সাড়ে দশটায় নাটোরের সিংড়া ২০২০-২১ মৌসুমে কৃষি পুনর্বাসন ও প্রনোদনা কর্মসূচির আওতায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক ২০ হাজার চাষীদের মাঝে বিনামূল্য বোরা ধান, গম, মসুর, চিনাবাদাম, সরিষাসহ বিভিন্ন বীজ ও সার বিতরন কার্যক্রম উদ্বোধনকালে উপরোক্ত কথা গুলো বলেন। প্রতিমন্ত্রী ভার্চুয়ালে যুক্ত হয়ে শুভ উদ্বোধন করেন। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন বানুর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন, সিংড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো: জান্নাতুৃল ফেরদৌস,  ডাহিয়া ইউপি চেয়ারম্যান এম এম আবুল কালাম, উপজেলা কৃষি অফিসার সাজ্জাদ হোসেন, ডায়াবেটিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন, সিংড়া মডেল প্রেসক্লাবের  সভাপতি রাজু আহমেদ সহ কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা বৃন্দ।

রাজু আহমেদ
২৭/১১/২০

লাকসামে দীর্ঘ ৭ বছরও বিএনপির দুই শীর্ষ নেতা ফিরে না আসায় জনমনে নানা প্রশ্ন

লাকসামে দীর্ঘ ৭ বছরও বিএনপির দুই শীর্ষ নেতা ফিরে না আসায় জনমনে নানা প্রশ্ন

লাকসাম প্রতিনিধিঃ আজ আজ শুক্রবার  নীরবে- নিস্তব্দে কেটে যাচ্ছে কুমিল্লার দক্ষিনাঞ্চল বিএনপি’র প্রান পুরুষ এ অঞ্চলের গণ মানুষের নেতা লাকসামের দুই শীর্ষ ব্যবসায়ী ও বিএনপি নেতা সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ন কবির পারভেজ নিখোঁজের ৭ বছর গুম দিবস।

অপহরণকারীদের পরিবার  জানায়, ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর এ দিনে র‌্যাব-১১ পরিচয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন সাদা পোষাকে লাকসাম উপজেলা বিএনপির সভাপতি, সাবেক এমপি ও দৌলতগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম হিরু ও  পৌর বিএনপির সভাপতি- ব্যবসায়ী হুমায়ুন কবির পারভেজকে কুমিল্লা যাওয়ার পথে আলীশ্বর নামক স্থান থেকে এবং অপর বিএনপির ১০ নেতা-কর্মীকে নিখোঁজ হিরুর মালিকানাধীন লাকসাম ফ্লাওয়ার মিল থেকে নগদ টাকা ও বেশক’টি দামী মোবাইল সেটসহ আটক করে। ঘটনার দিন সন্ধ্যা পৌনে ৮টা থেকে রাত ২টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সঞ্চালন বন্ধ করে পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে ওই যৌথবাহিনীর অভিযান চলে। ওইদিন গভীর রাতে অভিযানকারী যৌথ বাহিনীর সদস্যরা আটক ১০ জনকে লাকসাম থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করলেও অপর দুই শীর্ষ নেতা হিরু-পারভেজের ভাগ্যে কি ঘটেছে দীর্ঘ ৩ বছরেও সন্ধান দিতে পারেনি কোন সংস্থা।

স্থানীয় জনৈক মানবাধিকার কর্মী ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা জানায়, গত ৩০ আগষ্ট ২০১৬ গুমের মত একটি ভীতিপ্রদ ও অমানবিক ঘটনা বিভিন্ন দেশে যে ভাবে ঘটছে তারই বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বরূপ এবং গুম বিরোধী জনসচেতনতা গড়ে তোলার জন্য আর্ন্তজাতিক গুম প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালিত হয়েছে। আমাদের দেশেও এ দিনটি পালিত হয়েছে ক্ষোভ, উদ্ভেগ, উৎকন্ঠা ও  চোখের জ্বলের মধ্য দিয়ে। গুমের ঘটনা পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনের চেয়েও অনেক বেশি ভয়াবহ ও ট্র্যাজেটি। যাকে গুম করা হয় তাদের আত্মীয় স্বজন কেহই জানতে পারে না অপহৃতরা কোথায় আছে, কি ভাবে আছে, জানতে পারে না তারা কি জীবিত না মৃত। আবার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই গুম হওয়া মানুষগুলোর স্বজনেরা তাদের লাশের সন্ধান পায় না। খুব ভাগ্যবান হলে কিছু কিছু লাশের সন্ধান পায়। সেই নিরীক্ষে এ অঞ্চলের গণ মানুষের নেতা হিরু- পারভেজের কি পরিনতি হয়েছে নিখোঁজের ৩ বছর পার হলেও আজও তাদের খোঁজ নেই।


 শুধুমাত্র দু'পরিবার ঘরোয়া ভাবে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন ছাড়া স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা এ নিয়ে জোরালো কোন কর্মসূচী নেয়নি। বিগত দিনে এ দু’নেতার নানাহ কর্মসূচী ঘিরে তৃনমূল নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ ও পকেট বানিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। অথচ বলতে বলতে দীর্ঘ ৩ বছর পার হলেও মনে হয় এইতো সেদিনের ঘটনা। তবে এ ঘটনার স্বাদ তীব্র ভাবে অনুভব করছেন অপহৃত দুই পরিবার-পরিজনরা।সর্বচ্চো আতংক আর অপহৃত দুই পরিবারের জন্য সারা জীবনের অলিখিত এক অজানা অপেক্ষার প্রহর গুনতে হচ্ছে স্বজনদের। ওই অপহৃত দু’জনের সন্ধান পেতে এবং স্বজনদের কাছে ফিরে আসতে আজও অপেক্ষায় তারা।

জানা যায়, ২০১৩ সালের এ দিনে এ দক্ষিণ কুমিল্লার লাকসাম অঞ্চলের ২ বিএনপি  নেতা অপহৃত ব্যাক্তিদের দু’পরিবার দাবী করছে, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে ওই শীর্ষ নেতাকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার পর দীর্ঘ ৭বছরেও তাদের কোন হদিস পাচ্ছে না। তেমনি কাঁদতে কাঁদতে চোখের পানি শুকিয়ে গেছে অপহৃত দুই নেতার পরিবার-পরিজনের। হিরু-পারভেজ এখনও বেঁচে আছেন, তারা ফিরে আসবে, না কি তাদের মেরে ফেলা হয়েছে তাহলে অন্তত দু’জনের লাশটি ফেরত দিন। কে দিবে স্বজনদের প্রশ্নের জবাব। 

 স্থানীয় লোকজন জানায়, দীর্ঘ ৭ বছর জুড়ে চোখের জ্বলে দিন কাটছেন অপহৃত দু’শীর্ষ নেতার পরিবার-পরিজন ও ভক্তদের। তাদের সন্ধান না পেয়ে স্বজনরা প্রশাসনের ধারে ধারে ঘুরে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে। দুই নেতা নিখোঁজে স্তব্দ হয়ে পড়েছে এ অঞ্চলের অলি-গলি। অপহৃতদের স্বজনরা আরো জানায়, থানায় ডায়েরী, কুমিল্লার কোর্টে মামলা তবুও থামছে না স্বজন-ভক্তদের কান্না। এ অঞ্চলের গণ মানুষের নেতা হিরু-পারভেজ নিখোঁজে এ অঞ্চলে একপ্রান্ত থেকে অপরপ্রান্তের মানুষগুলো যেন একাকার হয়ে গেছে। ৭ বছর জুড়ে তবুও নিরবে নিঃস্তব্দে কাঁদছে এ অঞ্চলের সকল পেশার মানুষ। দু’শীর্ষ নেতা নিখোঁজে অপহৃত পারভেজের ছোট ভাই গোলাম ফারুক লাকসাম থানায় ডায়েরী ও কুমিল্লা কোর্টে মামলা দায়ের করলে তার তদন্ত ভার লাকসাম থানা পুলিশের উপর ন্যাস্ত হয়। মামলা ও ডায়েরী তদন্তে ৩ বছর পার হলেও মামলার উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি না থাকা এবং মূল পরিকল্পনাকারীদের সনাক্ত করতে বিভিন্ন তদন্ত সংস্থার লোকজনের ব্যর্থতাকে দায়ী করে তাদের রহস্যজনক নীরব ভূমিকা নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন তুলেছেন স্বজনরা। এ দিকে দু নেতা নিখোঁজের মামলায় পুলিশী প্রতিবেদনের নারাজী দিয়েছে মামলা ও ডায়েরীর বাদী গোলাম ফারুক।

অপহৃত দুই পরিবারের স্বজনরা জানায়, থানা পুলিশ মূল হোতাদের বাদ দিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দিলে, ওই নাটকীয় প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে মামলার বাদী গোলাম ফারুক অনাস্থা আবেদন জমা এবং একই সাথে মামলাটি সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবী করেছে।

কিশোরগঞ্জে বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিস্কুট বিতরণ

কিশোরগঞ্জে বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিস্কুট বিতরণ

মোঃ লাতিফুল আজম,নীলফামারী প্রতিনিধিঃনীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার নয়ানখাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীর বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিস্কুট বিতরণ করেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ ক্লাষ্টার অফিসার।


সকালে স্কুল ফিডিং কর্মসূচীর আওতায় আরডিআরএস বাংলাদেশের সহযোগীতায় ২শ ৫৯ জন শিক্ষার্থীর বাড়ীতে গিয়ে এ বছরের শেষ দিনের পর্যন্ত বিস্কুট বিতরণ করা হয়। শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার উপর বিশেষ নজরদারী বৃদ্ধি করতে অভিভাবকদের দেয়া হয় পরামর্শ। প্রয়োজন ছাড়া বাহিরে শিশুদের না যাওয়ার জন্য পরামর্শ দেন শিক্ষকবৃন্দ। খাওয়ার আগে ও পরে ভাল করে সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। বাড়ীতে বসে না থেকে অনলাইন ক্লাশ ও সংসদ টিভিতে ক্লাশ উপভোগ করে জ্ঞান চর্চার পরামর্শ দেয়া হয়।

বিস্কুট বিতরণের উদ্বোধন করেন,পানিয়াল পুকুর মিক্সড ক্লাষ্টারের দায়িত্বে থাকা নবাগত সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাহ্তাবুর রহমান বুলেট। এসময় উপস্থিত ছিলেন আরডিআরএস বাংলাদেশ নীলফামারী মনিটরিং এন্ড রিপোর্টিং অফিসার সোহেল রানা,আরডিআরএস বাংলাদেশ স্কুল ফিডিং কর্মসূচী প্রকল্পের কিশোরগঞ্জ শাখার ফিল্ড মনিটর সাজেদুর রহমান ও নয়ানখাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মওলা প্রমূখ।