মাগুরা জেলায় প্রতিক্ষনের ব্লাড রিজার্ভেশনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

মাগুরা জেলায় প্রতিক্ষনের ব্লাড রিজার্ভেশনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন




মো:রাসেল হোসেন,শ্রীপুর (মাগুরা)প্রতিনিধি :

প্রতিক্ষন ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশ মাগুরা জেলা শাখার পক্ষ থেকে আজ সোমবার  প্রতিক্ষন ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশের ১১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী  পালন করা হয়। এ উপলক্ষে বৃক্ষরোপন ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। জেলার শ্রীপুর থানাধীন দারিয়াপুর ইকো পার্কে উন্নতজাতের পেয়ারা গাছ রোপন করা হয়।এছাড়া জেলা প্রতিক্ষনের সদস্যদের মধ্যে  একজন  আজকে মুমুর্ষ এক জন রোগীকে  রক্তদান করেন,ও জেলার মধ্যে আরো বেশ কিছু স্হানে বৃক্ষ রোপন করা হয়েছে।রক্তদানে আগ্রহী করার জন্য, অসহায়দের নিঃশর্তভাবে সাহায্য ,সামাজিক বনায়ন সৃষ্টি ও রক্ত দেয়ার জন্য যুবকদের মাঝে সচেতনতা মুলক আলোচনা সভা করা হয়।এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা আহবায়ক আব্দুল্লাহ আল হাদী শামীম, 
সদস্য  আশিকুর রহমান ও প্রমুখ।  এ বারের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে প্রতিপাদ্য স্লোগান, 
আসুন দেশের কল্যাণে,দেশের মানুষের কল্যাণে, আমরা সবাই হাতে হাত রেখে এগিয়ে আসি।

ভয়ঙ্কর করোনাভাইরাস হোমিওতে প্রতিরোধ সম্ভব

ভয়ঙ্কর করোনাভাইরাস হোমিওতে প্রতিরোধ সম্ভব


মরণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে,সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে বিপুল আতঙ্ক তৈরি করেছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস।আর জীবনকে সফল করতে চাই নানামুখী পদক্ষেপ। মানুষের জীবনে স্বপ্নের হাত ধরেই সফলতার জাগরণ সৃষ্টি হয় আর সৎ কর্মেসফলতার দেখা পায় বা সার্থক হয় জীবন। জীবনের এ সফলতার পিছনে ছুটতে আপনার প্রথম শক্তি হচ্ছে স্বাস্থ্য। প্রবাদে আছে ‘স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল।’বর্তমান সময়ে সারাবিশ্ব ভয়ঙ্কর এক মহামারী দেখা দিয়েছে। কোভিট-১৯ বা নভেল করোনাভাইরাস। আজ করোনা ভাইরাস চিকিৎসায় হোমিওপরামর্শ নিয়ে কলাম লিখেছেন, বাংলাদেশের বিশিষ্ট হোমিও গবেষক ও দৈনিক স্বাস্থ্য তথ্য সম্পাদক, ডা.এম এ মাজেদ তিনি তার কলামে লিখেন.....করোনাভাইরাস এমন একটি সংক্রামক ভাইরাস - যা এর আগে কখনো মানুষের মধ্যে ছড়ায়নি।এর মধ্যে ২০১৩  টির বেশি দেশে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস, বিশ্বব্যাপী  মৃত্যুবরন করেছেন ৩.৬৪.৫৪৪ জনের বেশী মানুষের,আমাদের দেশের সর্বমোট সনাক্ত ৪৪.৬০৮ জন আক্রান্ত  মোট মৃত্যু  ৬১০ জন!এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে মোট ৯.৩৭৫জন।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে বিশ্ব ব্যাপী আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।ভাইরাসটির আরেক নাম ২০১৯ - এনসিওভি বা নভেল করোনাভাইরাস। এটি এক ধরণের করোনাভাইরাস। করোনাভাইরাসের অনেক রকম প্রজাতি আছে, কিন্তু এর মধ্যে মাত্র ছয়টি প্রজাতি মানুষের দেহে সংক্রমিত হতে পারে। তবে নতুন ধরণের ভাইরাসের কারণে সেই সংখ্যা এখন থেকে হবে সাতটি।
২০০২ সাল থেকে চীনে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া সার্স (পুরো নাম সিভিয়ার এ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম) নামে যে ভাইরাসের সংক্রমণে পৃথিবীতে ৭৭৪জনের মৃত্যু হয়েছিল আর ৮০৯৮জন সংক্রমিত হয়েছিল। সেটিও ছিল এক ধরণের করোনাভাইরাস।
নতুন এই রোগটিকে প্রথমদিকে নানা নামে ডাকা হচ্ছিল, যেমন: 'চায়না ভাইরাস', 'করোনাভাইরাস', '২০১৯ এনকভ', 'নতুন ভাইরাস', 'রহস্য ভাইরাস' ইত্যাদি।
এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রোগটির আনুষ্ঠানিক নাম দেয় কোভিড-১৯ যা 'করোনাভাইরাস ডিজিজ ২০১৯'-এর সংক্ষিপ্ত রূপ,হোমিওপ্যাথিক ওষুধ রোগাক্রান্ত ব্যক্তিদের আরোগ্য দিতে সহায়তা করতে পারে তার জন্য এ বিষয়ে জানা একান্ত অপরিহার্য।
ব্যাপক অর্থে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাবিজ্ঞানের নিয়মনীতি অনুসারে করোনাভাইরাসসহ কোনো ভাইরাসেরই প্রতিষেধক হিসেবে একক হোমিওপ্যাথিক ওষুধ নে। তবে কোনো একটি এলাকায় বসবাসরত অধিকাংশ লোক যদি সবাই একই লক্ষণ সমষ্টি নিয়ে করোনাভাইরাসসহ অন্য যে কোনো ভাইরাসে আক্রান্ত হলে, আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য যে একক ওষুধটি নির্বাচিত হবে,কিন্তু ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, করোনা মোকাবেলায় উপযুক্ত ওষুধ তাদের হাতে রয়েছে। ভ্যাকসিন বা অ্যালোপ্যাথি ওষুধ নয়, হোমিওপ্যাথিতেই করোনা প্রতিরোধ করা যাবে।
ভারতের আয়ুর্বেদিক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে টুইট করে জানানো হয়েছে, হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করা যায়। করোনা আক্রান্তের উপসর্গ সারানোর জন্য ইউনানি ওষুধ অত্যন্ত কার্যকর বলে জানানো হয়েছে। এ জন্য একটি নির্দেশিকাও জারি করা হয়। কী করা উচিত, কী করা উচিত নয় তার একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়। এমন কী ওষুধ খেতে হবে, তা-ও বলা হয়েছে।
করোনা ভাইরাস একটি সংক্রামক ভাইরাস। এটির সংক্রমনে জ্বর, কাশি, শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দেয়। অবস্থা মারাত্মক হলে নিউমোনিয়া দেখা দিতে পারে, এমনকি শ্বাস প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে রোগী মারা যেতে পারে।
তবে ১৮ বছরের কম বয়সীদের মধ্যে এর আক্রমন তেমন হয় না। বয়স্ক রোগী যারা ইতিমধ্যে ডায়াবেটিস, হাঁপানী, ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারী ডিজিজ (COPD), ইমফাইসেমা ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত তাদের মধ্যে মৃত্যু ঝুঁকি বেশি, যে সব লোক মারা গেছে তারা এসব রোগে আক্রান্ত ছিল।
★ করোনা ভাইরাস প্রথম প্রকাশঃ-
অনেক সময়ই কোন একটি প্রাণী থেকে এসে নতুন নতুন ভাইরাস মানব শরীরে বাসা বাঁধতে শুরু করে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ধারণা সাম্প্রতিক ভাইরাসটির উৎস কোনো প্রাণী।
যতটুকু জানা যায়, মানুষের আক্রান্ত হবার ঘটনাটি ঘটেছে চীনের উহান শহরে সামুদ্রিক মাছ পাইকারিভাবে বিক্রি হয় এমন একটি বাজারে।
করোনাভাইরাস ভাইরাস পরিবারে আছে, তবে এ ধরণের ছয়টি ভাইরাস আগে পরিচিত থাকলেও এখন যেটিতে সংক্রমিত হচ্ছে মানুষ সেটি নতুন।
বেশিরভাগ করোনাভাইরাসই বিপজ্জনক নয়, কিন্তু আগে থেকে অপরিচিত এই নতুন ভাইরাসটি ভাইরাল নিউমোনিয়াকে মহামারির দিকে ঠেলে দিতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে এবং অবশেষে এই রোগটির সংক্রমণ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ায় এটিকে বিশ্ব মহামারি ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
★বাংলাদেশে সরকারের ব্যবস্থাঃ-
অন্য অনেক দেশের মত বাংলাদেশও করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।
মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে ২৬শে মার্চ থেকে ৩০ মে  পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এসময় ওষুধের দোকান ও জরুরি প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্যের দোকান বাদে দেশের সকল বিপণিবিতান বন্ধ ঘোষণা করা হয়।
এই ছুটির মধ্যে যেন মানুষ নিজেদের ঘরে থাকে এবং জনসমাগম এড়িয়ে চলে, তা নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী রাস্তায় রয়েছে।
১লা এপ্রিল থেকে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার কাজে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তা করতে সেনাবাহিনীও নিয়োজিত রয়েছে।
এর আগেই দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয় এবং ইংল্যান্ড ছাড়া ইউরোপের সব দেশ থেকে যাত্রী আসায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। অন্য অনেক দেশের সাথেও বিমান চলাচল স্থগিত রয়েছে।
সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা বিভাগের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে যেন বিদেশ ফেরত যাত্রীরা হোম কোয়ারেন্টিন, সেল্ফ কোয়ারেন্টিন বা আইসোলেশনের নিয়মকানুন মেনে চলেন।
এবংকরোনা ভাইরাস প্রতিরোধে  বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক বোর্ড সরকারি বেসরকারি সকল হোমিওপ্যাথিক কলেজ ও সকল রেজিস্টার্ড প্রাপ্ত চিকিৎসককে একযোগে কাজ করার আহবান করেন।
★সাধারণ লক্ষণঃ-
জ্বর, কাশি,শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যাই মূলত প্রধান লক্ষণ।
সে আক্রমণ করে। 
সাধারণত শুষ্ক কাশি  ও জ্বরের মাধ্যমেই শুরু হয় উপসর্গ, পরে শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা দেখা দেয়।
সাধারণত রোগের উপসর্গগুলো প্রকাশ পেতে গড়ে পাঁচ দিন সময় নেয়।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, ভাইরাসটির ইনকিউবেশন পিরিয়ড ১৪দিন পর্যন্ত স্থায়ী থাকে। তবে কিছু কিছু গবেষকের মতে এর স্থায়িত্ব ২৪দিন পর্যন্ত থাকতে পারে।
মানুষের মধ্যে যখন ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেবে তখন বেশি মানুষকে সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকবে তাদের। তবে এমন ধারণাও করা হচ্ছে যে নিজেরা অসুস্থ না থাকার সময়ও সুস্থ মানুষের দেহে ভাইরাস সংক্রমিত করতে পারে মানুষ।
শুরুর দিকের উপসর্গ সাধারণ সর্দিজ্বর এবং ফ্লু'য়ের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ হওয়ায় রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রে দ্বিধাগ্রস্থ হওয়া স্বাভাবিক।
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব অনেককে সার্স ভাইরাসের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে যা ২০০০ সালের শুরুতে প্রধানত এশিয়ার অনেক দেশে ৭৭৪ জনের মৃত্যুর কারণ হয়েছিলো 
নতুন ভাইরাসটির জেনেটিক কোড বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে এটি অনেকটাই সার্স ভাইরাসের মতো।
"আমরা যখন নতুন কোনো করোনাভাইরাস দেখি, তখন আমরা জানতে চাই এর লক্ষ্মণগুলো কতটা মারাত্মক। এ ভাইরাসটি অনেকটা ফ্লুর মতো কিন্তু সার্স ভাইরাসের চেয়ে মারাত্মক নয়," বলছিলেন এডিনবারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মার্ক উলহাউস।
★ জটিল লক্ষণ প্রকাশঃ-
জ্বর দিয়ে ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়, এরপরে শুকনো কাশি দেখা দিতে পারে। প্রায় এক সপ্তাহ পরে শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যায়। অনেক রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিতে হয়।
এখন পর্যন্ত এই রোগে মারা যাওয়ার হার কম (১% থেকে ২% এর মধ্যে) - তবে এই পরিসংখ্যান পুরোপুরি বিশ্বাসযোগ্য নয়।
ইউরোপের কোন কোন অঞ্চলে এখন অধিক মৃত্যুহারও দেখা যাচ্ছে।
৫৬ হাজার আক্রান্ত রোগীর উপর চালানো এক জরিপ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে:
এই রোগে ৬% কঠিনভাবে অসুস্থ হয় - তাদের ফুসফুস বিকল হওয়া, সেপটিক শক, অঙ্গ বৈকল্য এবং মৃত্যুর সম্ভাবনা তৈরি হয়।
১৪% এর মধ্যে তীব্রভাবে উপসর্গ দেখা যায়। তাদের মূলত শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা তৈরি হয়।
৮০% এর মধ্যে হালকা উপসর্গ দেখা যায় - জ্বর এবং কাশি ছাড়াও কারো কারো নিউমোনিয়ার উপসর্গ দেখা যেতে পারে।
বয়স্ক ব্যক্তি এবং যাদের কোনো ধরণের অসুস্থতা রয়েছে (অ্যাজমা, ডায়বেটিস, হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ) তাদের মারাত্মক অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

চীন থেকে পাওয়া তথ্য যাচাই করে জানা যায় যে, এই রোগে নারীদের চেয়ে পুরুষের মৃত্যুর সম্ভাবনা সামান্য বেশি।
আক্রান্ত ব্যক্তি যেন শ্বাস প্রশ্বাসে সহায়তা পায় এবং তার দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা যেন ভাইরাসের মোকাবেলা করতে পারে তা নিশ্চিত করা থাকে চিকিৎসকদের উদ্দেশ্য।
★পরামর্শ
* মাঝে মাঝে সাবান-পানি বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়া
* হাত না ধুয়ে মুখ, চোখ ও নাক স্পর্শ না করা।
* হাঁচি কাশি দেওয়ার সময় মুখ ঢেকে রাখা
* ঠাণ্ডা বা ফ্লু আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে না মেশা
*  মাংস ও ডিম খুব ভালোভাবে রান্না করা
*  বন্য জীবজন্তু কিংবা গৃহপালিত পশুকে খালি হাতে স্পর্শ না করা
* ভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় যেকোনো খবরের জন্য একটি দারুণ প্রতীকী ছবি হচ্ছে মাস্ক বা মুখোশ পরা কোন মানুষের মুখচ্ছবি।
বিশ্বের বহু দেশেই সংক্রমণ ঠেকানোর একটি জনপ্রিয় ব্যবস্থা হচ্ছে মাস্ক ব্যবহার। বিশেষ করে চীনে, যেখান থেকে শুরু হয়েছে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঘটনা, সেখানেও মানুষ বায়ুর দূষণের হাত থেকে বাঁচতে হরহামেশা নাক আর মুখ ঢাকা মুখোশ পরে ঘুরে বেড়ায়।

করোনাভাইরাস থেকে নিজেকে যেভাবে নিরাপদ রাখবেন
অবশ্য বায়ুবাহিত ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে এই মাস্ক কতটা কার্যকর সে ব্যাপারে যথেষ্টই সংশয়ে আছেন ভাইরাস বিশেষজ্ঞরা, যাদেরকে বলা হয় ভাইরোলজিস্ট।
★হোমিওসমাধানঃ-আমরা জানি, করোনা ভাইরাস একটি ভাইরাস-ঘটিত সংক্রমণ। কাজেই প্রচলিত চিকিৎসাব্যবস্থা এর আরোগ্যকারী চিকিৎসা প্রদানে অক্ষম। তারা ম্যানেজমেন্ট, স্বাস্থ্যবিধি, কোয়ারেনটাইন ইত্যাদি উপায়গুলোর পূর্ণ সদ্ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যাপারটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে চেষ্টা করবে। তাদের সে সক্ষমতাও আছে এবং হয়তো সে আন্তরিকতাও আছে। কিন্তু তাদের আরোগ্যকারী চিকিৎসা দিতে না পারার জন্য নিজেদের মধ্যে থাকা অন্তর্নিহিত দুর্বলতা থাকাটা অবধারিত। আর সাধারণ মানুষের প্যানিক হওয়াটা যে স্বাভাবিক – সেটা তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না আর হোমিওপ্যাথি হলো রোগ নয় রোগীকে চিকিৎসা করা হয়,এই জন্য এক জন অভিজ্ঞ হোমিও চিকিৎসক রোগীর রোগের পুরা লক্ষন নির্বাচন করতে পারলে, করোনা ভাইরাস হোমিওপ্যাথির মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ সম্ভব এর আগে যেই ভাবে হোমিওপ্যাথির মাধ্যমে ডেঙ্গু রোগেরও নিয়ন্ত্রণ যেভাবে সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে করোনা ভাইরাস সেই ভাবে নিয়ন্ত্রণও হোমিওপ্যাথিতে সম্ভব।অনুরূপ লক্ষণে হোমওপ্যাথি ঔষধ, একোনাইট ন্যাপ,ইনফ্লুয়েঞ্জিনাম, আর্সনিক এ্যালবাম, বেলাডোনা, ব্রাইয়োনিয়া, জেলসিমিয়াম, ড্রসেরা, কার্বোভেজ, তবে বর্তমানে করোনা ভাইরাসের লক্ষণের মধ্যে ইনফ্লয়েঞ্জিনাম ঔষধের লক্ষণ ৮০ % মিল আছে ইত্যাদি ঔষধগুলো লক্ষণ অনুযায়ী প্রয়োগ করলে করণাভাইরাস আক্রান্ত রোগীকে সুস্থ করা সম্ভব।
লেখক
ডাঃ মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ
সম্পাদক ও প্রকাশক, দৈনিক স্বাস্থ্য তথ্য     
স্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা, হিউম্যান রাইটস রিভিউ সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটি
পরিবেশ ও স্বাস্থ্য সম্পাদক, সবুজ আন্দোলন কার্যনির্বাহী পরিষদ        
কো-চেয়ারম্যান হোমিওবিজ্ঞান গবেষণা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র 
ইমেইলঃdrmazed96@gmail.com
মোবাইল: ০১৮২২-৮৬৯৩৮৯

ময়মনসিংহের ভালুকায় জুয়া খেলা থেকে যুবলীগ নেতা সহ আটক ৪ জন

ময়মনসিংহের ভালুকায় জুয়া খেলা থেকে যুবলীগ নেতা সহ আটক ৪ জন



মিজানুর রহমান ইমন, ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের ভালুকায় জুয়া খেলার আসর থেকে যুবলীগ নেতা সহ চার জনকে আটক করেছে পুলিশ (১জুন) রবিবার ১০ দিকে তাদের কে আটক করা হয় ।

আটককৃত আসামীরা হলেন, ভালুকা উপজেলার ৮ নং ইউনিয়নের ডাকাতিয়া ইউনিয়নের আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি হারুণ অর রশিদ, হবিরবাড়ি ইউনিয়নের  আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সভাপতি আবু সাঈদের ছোট ভাই মফিজ উদ্দিন, আসাদ, ও মুস্তাফিজুর রহমান । 

ভালুকা মডেল থানার ওসি মোঃ মাঈন উদ্দিন বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতে পুলিশের একটি টিম উপজেলার রাংচাপাড়া গ্রামে মাছের খামারে অভিযান চালিয়ে জুয়া খেলা অবস্থায় তাদেরকে আটক করা হয় ।

এসএসসি পরীক্ষায় ঝিকরগাছায় সেরা পিতৃহারা আসিব

এসএসসি পরীক্ষায় ঝিকরগাছায় সেরা পিতৃহারা আসিব



স্টাফ রিপোর্টারঃ ২০২০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে উপজেলার সেরা হয়েছে পিতৃহারা আসিব হোসেন মুবিন। সে ১০৮৭ নম্বর পেয়ে শ্রেষ্ঠ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে। বাবার স্বপ্ন পূরণ করার জন্য প্রধান শিক্ষক, মা ও ভাইয়ের উৎসাহে মুবিন লেখাপড়ায় মনোযোগী হয় এবং ছেলেকে চিকিৎসক করার বাবার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার জন্য সে কঠোর পরিশ্রম ও সাধনা করে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে।

মুবিন যশোরের মণিরামপুর উপজেলার হরিহরনগর ইউনিয়নের তাজপুর গ্রামের মৃত আমজাত হোসেন ও আসমা বেগমের ছেলে। দুই ভাইয়ের মধ্যে মুবিন ছোট। ২০১৬ সালে ৭ম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় তার পিতা আমজাত হোসেন ষ্ট্রোক জনিত রোগে মারা যান। এ সময় স্বামী হারা মা আসমা বেগমের পক্ষে লেখাপড়া চালানো দুরুহ ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। মুবিনের লেখাপড়া যখন বন্ধ হওয়ার উপক্রম, তখন ঝিকরগাছা বিএম হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ সহ কয়েকজন শিক্ষক তাদের বাড়িতে যান এবং আসিব হোসেন মুবিনের লেখাপড়ার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ তাকে নিজের বাড়িতে রেখে লেখাপড়া করাতে থাকেন। ২০১৭ সালে জেএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে জিপিএ-৫ পাওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করে। ৯ম শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে সে তার নানার বাড়ি জাফরনগর গ্রামে চলে যায়। সেই জায়গা থেকে প্রতিদিন বাসে করে এসে ঝিকরগাছা বিএম স্কুলে ক্লাস করে। ২০২০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে গোল্ডেন প্লাস সহ ১০৮৭ নম্বর পেয়ে উপজেলার সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়ার গৌরব অর্জন করেছে। মুবিন প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়ও জিপিএ-৫ সহ ট্যানেলপুলে বৃত্তিপ্রাপ্ত হয়েছিল।

আসিব হোসেন মুবিন জানায়, আমার এ সাফল্যের জন্য আমার প্রধান শিক্ষক সহ শিক্ষকমন্ডলী, মা, ভাই, নানা-নানী, মামা-মামীর কাছে চিরঋণী হয়ে থাকবো। আমার বাবার খুব ইচ্ছা ছিল, আমি লেখাপড়া শিখে চিকিৎসক হয়ে দেশ, জাতি ও এলাকার সাধারণ মানুষের সেবা করব। আমার বাবার স্বপ্ন পূরণ করার জন্য আমি শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাবে। সকলেই আমার জন্য দোয়া করবেন।

আসিব হোসেন মুবিনের মাতা আসমা বেগম জানান, মুবিনের বাবা মারা যাওয়ার পরে আমি দিশেহারা হয়ে পড়ি। কি করব কিছু বুঝে উঠতে পারছিলাম না। তখন বিএম স্কুলের প্রধান শিক্ষক সহ কয়েকজন শিক্ষক আমার বাড়িতে এসে আমাকে সাহস দেন এবং মুবিনের লেখাপড়ার দায়িত্ব নেন। মুবিনের ফলাফল শোনার পর আমি আনন্দে অঝরে কেঁদেছি। আমার আনন্দের কথা আমি কাউকে বলে বোঝাতে পারবো না। সে যাতে আদর্শ মানুষ হতে পারে সে জন্য সকলে দোয়া করবেন।

বিএম হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ জানান, নিজের পরিশ্রম ও অধ্যবসায় দিয়ে মুবিন এ সাফল্য অর্জন করেছে। তার সাফল্যে আমরা শিক্ষকমন্ডলী ও পরিচালনা পরিষদ ব্যাপকভাবে খুশি। বিদ্যালয়ের এ সাফল্য ধরে রাখার জন্য সকল শিক্ষকমন্ডলী নিরর্লসভাবে কাজ করবে বলে আমি আশাবাদী।

এদিকে ঝিকরগাছা বি.এম হাই স্কুল এবারও অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে। বিদ্যালয় থেকে ২৯ জন শিক্ষার্থী গোল্ডেন সহ ৭৯ জন এ প্লাস পেয়েছে। এ ছাড়া ৮৫ জন এ গ্রেড, ২৫ জন এ মাইনাস সহ মোট ২০৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২০৫ জন পাশ করেছে। মোট পাশের হার ৯৯ %

মোহনগঞ্জে মারুফা হত্যার রহস্য উদঘাটন ও বিচারের দাবিতে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন

মোহনগঞ্জে মারুফা হত্যার রহস্য উদঘাটন ও বিচারের দাবিতে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন




মোঃআজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি :

 নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে গৃহকর্মী মারুফা (৯) হত্যার রহস্য উদঘাটন ও সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সম্মিলিত নাগরিক সমাজের উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সোমবার (১ জুন) বেলা ১১ টায় মোহনগঞ্জ পৌর শহরের স্টেশন রোডস্থ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের সামনের সড়কে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তারা  দ্রুত সময়ের মধ্যে মারুফার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট প্রকাশ করে কিশোরী গৃহকর্মী মারুফা হত্যার রহস্য উদঘাটন ও সুষ্ঠু বিচারের জোর দাবি জানান।

মানববন্ধন চলাকালে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্য সচিব মো. ইয়াসির আরাফাত রনির সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন নিহত গৃহকর্মী মারুফার মা আকলিমা আক্তার। এসময় তিনি বলেন,
'যারা আমার মারুফা হত্যার বিচার চাইছেন তাদের জন্য আমি সবসমই দুয়া করি আল্লাহ্ তাদেরকে হায়াত দারাজ করুন। আমি নিজে দেখেছি আমার মারুফার শরীরের আঘাত। আমার মারুফাকে নির্যাতন ও ধর্ষণ করা হয়েছে।   আমার মারুফার শরীরে যতগুলো আঘাত লেগেছে আল্লাহর আরশেও ততগুলো আঘাত লেগেছে। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই যেনো পৃথিবীর আর কোন মায়ের বুক এভাবে খালি না হয়।' এসময় কথা বলতে বলতে তিনি 
বুকফাটা কান্নায় ভেঙে পড়েন। 

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মির্জা আবদুল গনি, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা  শামছুল হক মাহাবুব, মোহনগঞ্জ সাধারণ পাঠাগারের সহসভাপতি সুলতান আহমেদ, আশরাফুল আলম টিপু, উপজেলা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল ইসলাম খোকন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান, যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার হোসেন, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তানে'র পক্ষ থেকে মাহাবুব হাসান পিয়াস, যুবলীগ নেতা রুবেল চৌধুরী ও নারী নেত্রী শরিফা আক্তারসহ আরো অনেকেই। 

উল্লেখ্য, গত ৯ মে নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মাহবুব মুর্শেদ কাঞ্চনের মোহনগঞ্জের বাসায় গৃহকর্মী কিশোরী মারুফার রহস্যজনক মৃত্যু হয়। বিকালে মারুফার লাশ নিয়ে চেয়ারম্যান নিজেই মোহনগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে মেয়ের শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখে ১১ মে মারুফার মা আকলিমা আক্তার বাদী হয়ে চেয়ারম্যানকে আসামি করে থানায় মামলা করেন। ওইদিনই রাতে মোহনগঞ্জ থানার পুলিশ চেয়ারম্যানকে আটক করে। পরদিন আদালতে সোপর্দ করলে জেলে রাখার একদিন পর হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে বের হন চেয়ারম্যান কাঞ্চন।

নাটোর আহমেদপুর দুর্ঘটনায় এক যুবকের মৃত্যু

নাটোর আহমেদপুর দুর্ঘটনায় এক যুবকের মৃত্যু

 


রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের সদর উপজেলার আহমেদপুর ব্রিজ সংলগ্ন সিএমবি এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নূর মোহাম্মদ নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ০১লা জুন সন্ধ্যায় ৬.৪৫ মিনিটে  এই দূর্ঘটনা ঘটে।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা জানায়, কাদিম সাথুরিয়াগ্রামের  আলহাজ্ব  মোঃ রুহুল আমিন ব্যাপারীর ছোট ছেলে নুর মোহাম্মদ( ২৫) মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে ট্রাক চাপায় নিহত হয় ।

এলাকাবাসী ও ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, নাটোর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী একটি ড্রাম ট্রাক চলন্ত মোটরসাইকেলে আঘাত হানলে ঘটনাস্থলেই যুবকটি নিহত হয় ও গুরুতর অবস্থা একজনকে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । নাটোর সদর উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশের হাতে তুলে দেয় ।

লালপুরে এই প্রথম শিশুর করোনা, জেলায় মোট ৫৭

লালপুরে এই প্রথম শিশুর করোনা, জেলায় মোট ৫৭



নিউজ ডেস্কঃ
  
নাটোরের লালপুরে এই প্রথম আট বছরের এক শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তার বাড়ি লালপুর উপজেলায় উত্তর লালপুরে। গত ২৮মে  তারিখে পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছিলেন। শিশুটি ঢাকা থেকে এসেছেন বলে নাটোরের সিভিল সার্জন ডাঃ কাজী মিজানুর রহমান বিষয়টি নশ্চিত করেছেন। এ নিয়ে নাটোরে মোট আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৫৭ জন। এদের মধ্যে ১০ জন পুরোপুরি সুস্থ্য হয়েছেন।
সিভিল সার্জন অফিস সুত্রে জানায় , করোনায় আক্রান্ত শিশুটি পরিবারের সাথে গত ২৫ মে ঢাকা থেকে লালপুরে গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসে। পরে শরীরের জ্বর দেখা দিলে ২৮ তারিখে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বর্হিবিভাগের করোনা ল্যাবে তার নমুনা পরীক্ষা করা হয়।এরপর করোনা পজিটিভ হলে বিষয়টি সন্ধ্যায় সিভিল সার্জন অফিসে প্রথমে ফোনে ও পরে মেইলে নিশ্চিত করা হয়। 

লালপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মুল বানীন দ্যুতি জানান, আক্রান্ত শিশুটির সংষ্পর্শে যারা এসছিলেন তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এছাড়া আক্রান্ত ব্যক্তির ওই বাড়িটি লকডাউন করা করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে লাশ উদ্ধার!

চাঁপাইনবাবগঞ্জে লাশ উদ্ধার!





শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিবগঞ্জ উপজেলার মহানন্দা নদীতে ডুবে একজনের মৃত্যু হয়েছে । 
১লা জুন বেলা ৩টায় এঘটনা ঘটে।

মৃত নিরব (২১) চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বারঘরিয়ার নুরুল ইসলামের ছেলে।

জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের চৈতন্যপুর গ্রামে শশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে মহানন্দা নদীতে গোসলের সময় সাঁতার দিতে গিয়ে নিরব (২১) পানিতে ডুবে যায়।

তারপর , শিবগঞ্জ উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দীর্ঘক্ষণ খোঁজা-খোঁজির পর অদ্য ১৮০০ ঘটিকায় নিরবের লাশ উদ্ধার করে।

উল্লেখ্য যে, মৃত নিরবের মাত্র ছয়দিন আগে শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের চৈতন্যপুর গ্রামের শফিকুল ইসলামের (ধোপা) মেয়ে পিংকি খাতুনের সাথে বিয়ে হয়।

শিবগঞ্জ থানা পুলিশ বিষয়টি সত্যতা প্রমান করে নিশ্চিত করেন।

নারী ইউপি সদস্য বিউটির বিরুদ্ধে ত্রান নিয়ে অভিযোগ

নারী ইউপি সদস্য বিউটির বিরুদ্ধে ত্রান নিয়ে অভিযোগ


 



কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ
ত্রান বিতরনসহ মাতৃত্বকালীন ভাতার তালিকা প্রনয়নে অনিয়ম, উৎকোচ গ্রহনসহ স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে পটুয়াখালীর মহিপুর থানার সদর ইউনিয়নের নারী সদস্য বিউটি বেগমের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে কয়েকবার মানববন্ধনসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে আবেদন করেছে ৬ নম্বর ওয়ার্ডের শতাধিক নারী পুরুষ। এসময় সংশ্লিষ্ট ভুক্তভোগীরা উপস্থিত ছিলেন। 
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মহিপুর থানার  সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য নিমাই চন্দ্র দাসের পরলোক গমনের পর ওই ওয়ার্ডের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের সদস্য বিউটি বেগম। এ সুযোগে ত্রান বিতরনসহ মাতৃত্বকালীন ভাতার তালিকা প্রনয়নে সেচ্ছাচারিতা শুরু করেন বিউটি বেগম। করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের দেয়া ত্রান বিতরনে ওয়ার্ড দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিসহ কাউকে তোয়াক্কা করছেন না বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। 
নারী ইউপি সদস্য বিউটি বেগমের এমন অনিয়মের বিরুদ্ধে দু’দফা মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছেন ভ’ক্তোভোগীরা। এসময় মানববন্ধনে অংশগ্রহনকারীরা তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরেন। ছায়া রানী জানান, তার ভাতিজিকে মাতৃত্বকালীন ভাতা দেওয়া আশ্বাসে তার কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা নিয়েও নাম তালিকাভূক্ত করেনি। বরং বিভিন্নভাবে হয়রানি করছে ইউপি সদস্য বিউটি বেগম।

সাবিনা আক্তার জানান, মাতৃত্বকালীন ভাতা দেওয়ার জন্য তার কাছ থেকে ৮ হাজার টাকা নিয়েছেন বিউটি বেগম। কিছুদিন পর তালিকা থেকে তার নাম বাদ দিয়ে দেয়। পরবর্তীতে উপজেলা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদনের মাধ্যমে পূনরায় তার নাম তালিকাভ’ক্ত করেন। 
লক্ষী রানী, স্বামী পরিত্যাক্তা স্বরজু বালা বলেন, মানুষের বাসা-বাড়ীতে কাজ করে সন্তান নিয়ে জীবিকা র্নিবাহ করি। ত্রানের জন্য বিউটি মেম্বরের হাতে-পায়ে ধরেও পাইনি।
ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ওয়ার্ড ত্রাণ কমিটির আহŸায়ক সোহরাব হাওলাদার বলেন, ত্রানের তালিকা প্রনয়নের ওয়ার্ড ত্রাণ কমিটির সাথে কোন ধরনের সমন্বয় ছাড়াই বিউটি বেগম ইচ্ছেমত তালিকা প্রননয় করেছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিউটি বেগম বলেন, ক’দিন বাদেই মহিপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে প্রতিপক্ষরা আমাকে জনসাধারনের সামনে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এ ষড়ডন্ত্র করছে। ত্রান নিয়ে অনিয়মের কারনে আমি বাদী হয়ে ইতিপূর্বে জনস্বার্থে মামলা করেছিলাম। সেই মামলার আসামী পক্ষ এ ষড়যন্ত্রের নেপথ্যে কল কাঠি নাড়ছে।
কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মো. শহিদুল হক বলেন, মহিপুরের ইউপি সদস্য’র বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। পিআইওকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিএসকেএস কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেলেন মাহমুদুল হাসান রাকিব

বিএসকেএস কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেলেন মাহমুদুল হাসান রাকিব





নিউজ ডেস্কঃ  
বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংগঠন- ( বিএসকেএস )BSKS সেন্ট্রাল কমিটির 'যুব উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক' ও BSKS চট্রগ্রাম বিভাগ সম্মনয়কারী মনোনীত হলেন চট্টগ্রামের কৃতি সন্তান ও জনপ্রিয় অনলাইন নিউজপোর্টাল বিবিসিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম ডটবিডি এর প্রকাশক ও সম্পাদক জনাব মাহমুদুল হাসান রাকিব।

বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংগঠন ,(কেন্দ্রীয় কমিটি)- বিএসকেএস এর  সভাপতি জনাব শেখ তিতুমীর আকাশ এর বিশেষ ঘোষণার মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়।

বিএসকেএস এর সভাপতি জনাব শেখ তিতুমীর আকাশ এর বিশেষ ঘোষণাটি বিবিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম ডটবিডি এর প্রকাশক ও সম্পাদক জনাব মাহমুদুল হাসান রাকিব এর শুভাকাঙ্ক্ষীদের জ্ঞাতার্থে তুলে ধরা হলো-

বিশেষ ঘোষনা,
প্রিয়,
BSKS - কেন্দ্রীয় কমিটির সকল নেতৃবৃন্দদেরকে সর্ব প্রথম বঙ্গীয় শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। সেই সাথে চলমান বিশ্বের আতংকিত মহামারী করোনা ভাইরাস বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রে ছড়িয়ে যাওয়ায় বাঙ্গালীর জাতির জনকের স্বপ্নের সোনার বাংলার সকল জনসাধারনকে সচেতন রাখতে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন সরকারের ভ্যান গার্ড হয়ে, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ রেহেনার নিদেশে (বিএসকেএস) কেন্দ্রীয় কমিটির এগিয়ে যাচ্ছে আইন প্রশাসনের হাতে হাত রেখে এক সাথে এই শ্লোগানে মুখরিত হয়ে "করোনাকে ভয় নয়, সর্তক থাকুন, নিরাপদে থাকুন। ঘরেই থাকুন, সুস্থ্য থাকুন।"

বন্ধুগন,
আমাদের অনেক সাংবাদিক ভাই বোন আছে, যারা অনেক সময় নিয়ম না জেনে, আইন না জেনে, আইনের ধারা না জেনে, সাংবাদিকতা করতে গিয়ে বিভিন্ন হয়রনির শিকার হতে হয়, অনেকে সঠিক নিয়ম মেনে ও সনদ থাকতেও তাদের নির্যাতনের শিকার হতে হয়, তাই বন্ধুগন আমরা সেই সব প্রিয় ভাই- বোনদের সুখে দুঃখে পাশে থেকে সকলকে সংবাদ মাধ্যমের সঠিক নিয়মের আওয়াতাধীন এনে, সাংবাদিকতার মত মহত পেশাকে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত একই সম্মানে আনতে সব সময় সরকারের নির্দেশনা মেনে কাজ করে যাচ্ছি।

জনাব/জনাবা,
নামঃ মাহামুদুল হাসান রাকিব।
সম্পাদক এবং প্রকাশক
BBC NEWS24. COM. BD
শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ এমবিএ, পিএইচডি ভর্তি রানিং, কে BSKS চট্রগ্রাম বিভাগ সম্মনয়কারী করা হলো আপনি আরো অবগত থাকবেন যে -

আপনাকে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংগঠন- ( বিএসকেএস )কেন্দ্রীয় কমিটির যুব উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক করা হলো।

আপনি এই ধারায় অবগত থাকবেন যে,
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গলী, জাতির জনকের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে, মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধার চেতনাকে যুগ যুগ ধরে রাখতে, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ভ্যান গার্ড হয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা, জননেত্রী শেখ রেহেনার নির্দেশে, তথ্য প্রযুক্তি কে এগিয়ে নিয়ে, সংবাদ মাধ্যম ও বাংলার ৬৪ জেলার সাংবাদিক ভাইবোনদের অধিকার আদায়ে
বিএসকেএস কেন্দ্রীয় কমিটি অঙ্গীকারবদ্ধ।

আপনি আরো অঙ্গীকারবদ্ধ থাকবেন যে সামাজিক সংস্থা ( ডিপো) পরিচালনায় বিএসকেএস - কেন্দ্রীয় কমিটি গভঃ রেজিঃ নং - কুষ- ৭৮৮/ ০৭ এর--- গঠনতন্ত্রের ধারা, নিয়ম কানন মেনে কেন্দ্রীয় কমিটির সকল সাংগঠনিক নেতাদের হাতে হাত রেখে আপনার নিজ জেলায় আগামী তিন মাসের মধ্যে জেলা / মহানগর / পৌরসভা/উপজেলা কমিটি করে, কেন্দ্রীয় কমিটিকে উপহার দিবেন।

আপনি আরো অবগত থাকবেন যে, আপনি যদি কোন দেশদ্রোহী /জঙ্গী /সন্ত্রাস / মাদক এর সাথে জড়িত থাকেন, এমন কোন তথ্য কেন্দ্রীয় কমিটি প্রমান করতে পারে তবে গঠনতন্ত্র ধারা মোতাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি আপনাকে বহিস্কার করে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবে।

আপনি আরো অবগত থাকবেন যে, আপনার নিজ থানার পুলিশ সার্টিফিকেট দিতে হবে, যাহা সংগঠনের প্রতিটি নেতৃবৃন্দদের কে নির্দেশ করা হলো।
যদি কেউ তাহা দিতে অপারগ হন সেক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় কমিটি আপনার সদস্যপদ বাতিল করার অধিকার রাখে।
সর্বশেষ,
কেন্দ্রীয় সকল সদস্য কে অবগত করা হলো যে বর্তমানে দেশে করোনা ভাইরাস মহামারী আকারে ছড়াচ্ছে তাই সবাই সামাজাকি দুরত্ব বজায় রাখি। তাহলেই আমরা করোনা ভাইরাসকে পরাজিত করতে পারব ইনশাআল্লাহ।

সবাই ভাল থাকুন সুস্থ্য থাকুন এই কামনা রইল। কেন্দ্রীয় কমিটির সকল নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানাই নতুন সহ যোদ্ধা কে।

নিবেদক,
শেখ তিতুমীর আকাশ
সভাপতি -
বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংগঠন ,(কেন্দ্রীয় কমিটি)- বিএসকেএস
পিআইডি রিপোটার আইসিটি রাজনৈতিক শাখা-৪
সাবেক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কারিগরি শিক্ষা বেসরকারি শাখা-সাংগঠনিক সম্পাদক
ঢাকা-বাংলাদেশ,
মোবাইল:- 01312655399/01883222333
ইমেইল:- homeaffairs0@gmail.com,

বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংগঠন বিএসকেএস কেন্দ্রীয় কমিটিতে যুব উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক পদে নিযুক্ত করায় ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন জনাব মাহমুদুল হাসান রাকিব।

তিনি বলেন- এই দায়িত্ব পেয়ে আমি আনন্দিত। আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব আমি নিষ্ঠার সাথে, সততার সাথে পালন করবো। সর্বোপরি, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার একজন সৈনিক হিসেবে আমি সেই লক্ষ্যে পূর্বের ন্যায় কাজ করে যাবো। সবাই আমার ও আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

সেই সাথে তিনি, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যান সংগঠন ,(কেন্দ্রীয় কমিটি)- বিএসকেএস এর সভাপতি মহোদয় সহ BSKS - কেন্দ্রীয় কমিটির সকল নেতৃবৃন্দদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

কেশবপুরে এক যুবলীগ নেতাকে হুমকি থানায় জিডি

কেশবপুরে এক যুবলীগ নেতাকে হুমকি থানায় জিডি




যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি 

কেশবপুরে বিদ্যানন্দকাঠি ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক ওবাইদুল রহমান নীলকে এলাকার একটি সংঘবদ্ধ চক্র বিভিন্নভাবে হুমকি ও হয়রানি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় ওই যুবলীগ নেতা জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে কেশবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেছেন। সাধারণ ডায়রি সূত্রে জানা গেছে যুবলীগ নেতা ওবায়দুল রহমান নীল দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। 

ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। বর্তমানে তিনি বিদ্যানন্দকাঠি ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন আহবায়কের দায়িত্ব পালন করে আসছে। তিনি এলাকার মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে আসছেন। যে কারণে এলাকার একটি সন্ত্রাসী চক্র তার বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র শুরু করে। 

এক পর্যায়ে তারা নীলকে তাদের দলে ভেড়াতে না পেরে বৃহস্পতিবার রাতে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও জীবন নাশের হুমকি প্রদান করে। হুমকির নেতৃত্ব দিয়েছেন ওই এলাকার আানিছুর রহমান, কামরুল ইসলাম,আছাদুল ইসলাম ও জাকির হোসেন। এর মধ্যে কামরুল ইসলাম ও আছাদুল ইসলাম হত্যা ও বোমাসহ একাধিক মামলার আসামী। এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জসিম উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মাধবপুরে প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনার চেক ইমামদের মাঝে বিতরন শুরু

মাধবপুরে প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনার চেক ইমামদের মাঝে বিতরন শুরু




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

 হবিগঞ্জের মাধবপুরে প্রধানমন্ত্রীর প্রাণোদনার চেক ইমামদের মাঝে বিতরণ শুরু, প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ক্ষতি মোকাবেলায় ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের প্রতিটা মসজিদের ইমাম -মোয়াজ্জিনদের ঈদ উপহার হিসেবে ৫ হাজার টাকা করে।

দেয়ার ঘোষনা বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে।
সোমবার (১-জুন) মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে মাধবপুর পৌরসভার ৩২ টি মসজিদের ইমামদের হাতে চেক বিতরন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাশনূভা নাশতারাণ
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক।

ফাউন্ডেশন মাধবপুর শাখার ফিল্ড সুপার ভাইজার শাহ আলম সরকার। মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাশনূভা নাশতারান জানান,উপজেলার ৪২৬ টি মসজিদের ইমাম সাহেবগন প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনার চেক পাবেন। আজ পৌরসভার চেক বিতরন করেছি। পর্যায়ক্রমে উপজেলার সবগুলো চেক বিতরন করা হবে।

সিরাজগঞ্জ আর নতুন করে করোনায় আক্রান্ত ৫ জন

সিরাজগঞ্জ আর নতুন করে করোনায় আক্রান্ত ৫ জন




 মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জে করোনায় নতুন করে আরো ৫ জন শনাক্ত হয়েছেন। এনিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৪৩ এ। নতুন আক্রান্তরা হলেন, সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার ২ জন, তাড়াশে ১ জন, শাহজাদপুরে ১ জন ও চৌহালীতে ১ জন (তাদের নাম লেখা হলোনা)।
সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি আমাদের পপ্রতিনিধিকে জানান, কয়েকদিন আগে ৯৩ জনের নমুনা রিপোর্ট পাঠানো হয়েছিল। এরমধ্যে রোববার বিকেলে ওই ৫ জনের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। এনিয়ে জেলায় ৪৩ জন করোনায় আক্রান্ত হলেও ইতিমধ্যেই ৩ জন সুস্থ হয়েছেন। একদিনে আরো ৫  জনের রিপোর্ট পজেটিভ আসায় জনমনে নাকি এখন আতংকের সৃষ্টি হয়েছে। তবে সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা বলছেন, স্বাস্থবিধি মেনে চললে এই রোগে আতংক হওয়ার কিছু নেই।

বড়াইগ্রামে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীর মাঝে শিক্ষা উপবৃত্তি বিতরণ

বড়াইগ্রামে ক্ষুদ্র  নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীর মাঝে শিক্ষা উপবৃত্তি বিতরণ





রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের বড়াইগ্রামে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের বিশেষ এলাকার জন্য উন্নায়ন সহায়তা কর্মসুচির আওতায় ক্ষুত্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীর মাঝে শিক্ষা উপবৃত্তি বিতরণ করা হয়েছে। 

সোমবার উপজেলা প্রশাসন এই কর্মসূচির আয়োজন করে। প্রধান অতিথি হিসেবে স্থানীয় সাংসদ আব্দুল কুদ্দুস উপস্থিত ছিলেন।
উপজেলা পরিষদ মিলানায়তনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার পারভেজের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত  ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী ও বনপাড়া পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেন।

 জাতীয় আদিবাসী পরিষদ বড়াইগ্রাম উপজেলা শাখার সভাপতি যাদু কুমার।
উপজেলা পরিষদ সুত্রে জানা যায়, মাধ্যমিক পর্যায়ে ২শ জনকে ৬শত, উচ্চমাধ্যমিক  পর্যায়ে ৮০ জনকে ১ হাজার, স্নাতক পর্যায়ে ৩০ জ কে ১হাজার ছয় শত, স্নাতকত্তর পর্যায়ে ১৭ জনকে ৩ হাজার টাকা করে বিতরণ করা হয়। এছারাও প্রাথমিকের ৫০ জনের মাঝে শিক্ষা উপকরণ এবং আগামী বুধবার ৩০ জন শিক্ষার্থীর মাঝে সাইকেল উপকরণ বিতরণ করা হবে।

নাটোরে বাস চাপায় প্রকৌশলী নিহত

নাটোরে  বাস চাপায় প্রকৌশলী নিহত




রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের বড়াইগ্রামে দ্রুতগামী  বাসের চাপায় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম সরকার (৬৫) নামের এক প্রকৌশলী নিহত হয়েছেন। সোমবার দুপুরে নাটোর-পাবনা মহাসড়কের গড়মাটি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুস সালাম সরকার গড়মাটি গ্রামের মৃত মকবুল হোসেন সরকারের ছেলে। তিনি সড়ক ও জনপথ বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী ছিলেন। 
বনপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি খন্দকার শফিকুল ইসলাম জানান, দুপুরে আব্দুস সালাম সরকার রাজাপুর বাজার থেকে তরি-তরকারী কিনে মোটর সাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। বাড়ির সামনে এসে পার্শ্ব সড়কে নামার সময় নাটোরগামী জে.আর পরিবহনের একটি দ্রুতগামী বাস পেছন থেকে মোটর সাইকেলসহ তাকে চাপা দেয়। পরে গুরুতর  আহত অবস্থায়  তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে বিকেল তিনটার দিকে তিনি মারা যান।

নাগরপুরে অসহায় কৃষকের ধান কেটে দিলেন কবি নজরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মচারী

নাগরপুরে অসহায় কৃষকের ধান কেটে দিলেন কবি নজরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মচারী



       
ডা.এম.এ.মান্নান, টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:সারাদেশে মহামারী  করোনা ভাইরাস(কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাবে শ্রমিক সংকটে ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। এই পরিস্থিতিতে সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে  কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে নাগরপুরের ঐতিহ্যবাহী কবি নজরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে ধান কাটা কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে।
সোমবার (১ জুন ২০২০ খ্রি.)সকাল ১০.০০ টায়  টাংগাইল জেলা নাগরপুর উপজেলার গয়হাটা ইউনিয়ন সিংজোড়া গ্রামের অসহায় কৃষক মো.লাল মিয়ার জমির পাঁকা ধান বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.মাহফুজুর রহমানের নেত্বতে সহকারি প্রধান শিক্ষক, সহকারি শিক্ষক ও কর্মচারীরা সরাসরি কাস্তে হাতে নিয়ে পানি ভর্তি জমিতে পাঁকা ধান কাটার অংশ নেন।
বর্গাচাষী অসহায় কৃষক মো.লাল মিয়া বলেন, অর্থ সংকট ও জনবলের অভাবে ধান কাটতে না পারায় কবি নজরুল  উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.মাহফুজুর রহমান স্যারের সঙ্গে যোগাযোগ করি।পরে আজ সকালে  আমার জমির পাঁকা ধান স্কুলের সকল শিক্ষক শিক্ষিকা, কর্মচারী ও আয়াকে নিয়ে সুন্দরভাবে কেটে দেওয়া হয়।আমি শিক্ষকদের প্রতি সারাজিবন কৃতজ্ঞ থাকবো এবং এই সহযোগিতা কোনদিন ভুলবো না। 
কবি নজরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জ্বনাব মো.মাহফুজুর রহমান বলেন,আমার বিদ্যালয়ের যেসব অসহায় ছাত্র-ছাত্রীর পরিবার অর্থ ও জনবলের অভাবে তাদের ধান কাটতে পারছে না, ফলে জমিতে নষ্ট হচ্ছিল ফসল। আমরা তাদের ধান কেটে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি এবং আমার সহকর্মীদের নিয়ে আজ তা বাস্তবায়ন করলাম।আমাদের ধান কাটা কার্যকম অব্যাহত থাকবে, ইনশাআল্লাহ।

শার্শা থানা পুলিশের হাতে ফেন্সসিডিলসহ প্রাইভেটকার জব্দ

শার্শা থানা পুলিশের হাতে ফেন্সসিডিলসহ প্রাইভেটকার জব্দ




মোরশেদ আলম
যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি 

  যশোরের শার্শা থানা পুলিশের অভিযানে  মাদকসহ একটি প্রাইভেটকার জব্দ করেছে।  এ ঘটনায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে। 

থানা সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার রাতে শার্শা থানার সাব-ইন্সপেক্টর সোহেল রানা সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে উপজেলার পান্তাপাড়া গ্রামে অভিযান কালে একটি প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো গ- ১২- ৪১৩১) ধাওয়া করলে গ্রামের পশ্চিমপাড়ায় জামে মসজিদের সামনে ফেলে মাদক ব‍্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে প্রাইভেটকারটি জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে। রাতেই স্থানীয় সাংবাদিকসহ অনেকের উপস্থিতিতে প্রাইভেটকারটি তল্লাশি করে ১৬ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল ও ৩ পিচ ইয়াবা ট‍্যাবলেট উদ্ধার করে।   

শার্শা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম খান জানান, মাদকদ্রব্যসহ একটি প্রাইভেটকার জব্দ করা করা হয়েছে, এ ঘটনায় মাদকদ্রব‍্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।

সাতক্ষীরায় সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ সভাপতির প্রচারাভিযান

সাতক্ষীরায় সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ সভাপতির প্রচারাভিযান



ডেস্ক রিপোর্টঃ
করোনা পতিরোধ বিধি মেনে চলি নিজে সুস্থ থাকি অনন্য কে সুস্থ রাখি প্রচারে মোঃ আজহারুল ইসলাম  সভাপতি সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কালিগঞ্জ উরজেলা শাখার ৬ নং নলতা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের প্রতিটা মানুষের সতর্কতা অসচেতনতার জন্য সারাদিন প্রচার করেন
সবাইকে মহান আল্লাহ সুবহানাতায়ালার কাছে প্রার্থনা করতে বলেন আল্লাহ্‌ যেনো এই মহামারী করোনা ভাইরাস দুনিয়া থেকে উঠিয়ে নেন। আমীন

ঝিকরগাছায় প্রতিটি মসজিদে আর্থিক অনুদান প্রদাণ

ঝিকরগাছায় প্রতিটি মসজিদে আর্থিক অনুদান প্রদাণ




মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ 

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলায় ৫১৬ টি মসজিদে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী  শেখ হাসিনা করোনা ভাইরাস (কোভিট-১৯) পরিস্থিতিতে প্রতিটি মসজিদসমূহের আর্থিক অসচ্ছলতা দূরীকরণে অনুদান প্রদাণ।জানা যায় আজ সকালে ঝিকরগাছা প্রশাসনের উদ্যোগে  প্রত্যেক মসজিদের অনুকুলে ৫.০০০.০০ (পাঁচ হাজার) টাকা করে অনুদান প্রদান করা হয়।

ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব সুমি মজুমদার-এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ মনিরুল ইসলাম। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোঃ সেলিম রেজা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুবনা তাক্ষী, ইসলামি ফাউন্ডেশন ঝিকরগাছা ফিল্ড অফিসার আলমগীর সিদ্দিক সহ সকল মসজিদের ঈমামগন উপস্থিত ছিলেন।

কুয়েত স্বাভাবিকের দিকে ধীরে ধীরে ফিরে আসার পরিকল্পনা

কুয়েত স্বাভাবিকের দিকে ধীরে ধীরে ফিরে আসার পরিকল্পনা




 আকরাম হোসেন সুমন কুয়েত রিপোর্টারঃ

বর্তমান পরিস্থিতি থেকে স্বাভাবিক জীবনে
প্রত্যাবর্তন বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া
সামাজিক-দায়বদ্ধতা

বিভিন্ন পর্যায়ের স্থানন্তরের জন্য মৌলিক মানদন্ড
 সংক্রমণ স্থানন্তরের পরিমাপ
 সংক্রমিত সংখ্যা যথেষ্ট সময় স্থিতিশীল থাকা
 আইসিউতে পারিবারিক সংখ্যা কম উপস্থিতি
 হাসপাতালে জন সংখ্যা কম উপস্থিতি
 দৈনিক সংক্রামিতের সংখ্যা হ্রাস করা
পাঁচটি ধাপে কুয়েত স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাবে ইনশা আল্লাহ

প্রথম ধাপ
আংশিক কারফিউ
বিকাল ৬টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত (সমগ্র কুয়েত)
আঞ্চলিক লকডাউন
ফারওয়ানিয়া, খাইতান, হাওয়াল্লি, এবং ময়দান হাওয়াল্লি
লকডাউন চলমান থাকবে
 জেলীব আল শুয়োখ, মাহবূলা
 মসজিদ ও ইবাদাতখানাগুলো স্বাস্থ্য সরঞ্জামের প্রস্তুতির পর।
 শিল্প প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম।
 শিপিং সার্ভিস, মেরামত সাভিস,গ‍্যাস ও লন্ড্রি  হোম ডেলিভারি সার্ভিস।
 রেস্টুরেন্ট ও ক্যাফে (ডেলিভারি ও গাড়িতে বসে অর্ডার করা যাবে) 
 টেলিকমিউনিকেশন ও ইন্টারনেট সরবরাহের প্রতিষ্ঠান। 
 খাদ্য সামগ্রীর প্রতিষ্ঠান, যেমন- জামইয়া, সুপার মার্টেক, বাকালা 
 কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠানের যানবাহন। 
 পেট্রাল পাম্পের যাবতীয় সেবা। 
 হাসপাতাল  ও প্রাইভেট ক্লিনিক। 
 গাড়ির শো-রুম, অটোপার্টসের দোকান, গ্যারেজ, কারওয়াশ।

দ্বিতীয় ধাপ:
আংশিক কারফিউ
বিকাল ৯টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত (সমগ্র কুয়েত)
আঞ্চলিক লকডাউন
পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ

পূর্বোল্লেখিত প্রতিষ্ঠানগুলোসহ নিম্নে বর্ণিত প্রতিষ্ঠানগুলো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিধি মেনে খুলে  দেওয়া হবে
 সরকারী এবং বেসরকারী কর্মক্ষেত্র (৩০% এর কম উপস্থিত থাকবে)
 নির্মাণাধীন সেক্টর।
 আর্থিক এবং ব্যাংকিং
 বাণিজ্যিক কমপ্লেক্স (সকাল ১০:০০ টা থেকে ৬:০০ টা পর্যন্ত চলবে)
 খুচরা দোকান।
 রেস্তোঁরা / ক্যাফে (অর্ডার গ্রহণ করা যাবে (ডাই-ইন) বসে খাওা যাবেনা
 পাবলিক পার্ক এবং বাগান। (সামাজিক দূরত্বসহ)

তৃতীয় ধাপ
আংশিক কারফিউ (বাতিল)
আঞ্চলিক লকডাউন (প্রয়োজন বোধে)
পূর্বোল্লিখিত প্রতিষ্ঠানগুলোসহ স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ে বিধি মেনে নিম্নে বর্ণিত প্রতিষ্ঠানগুলো তৃতীয় ধাপে খুলে দেওয়া হবে
 সরকারী সংস্থা এবং বেসরকারী খাতে কর্মক্ষেত্র (৫০% এর কম উপস্থিত থাকবে) 
 মসজিদ (শর্তসাপেক্ষে জুমুয়ার নামাযের জন্য খোলা হবে)
 সামাজিকতা রক্ষার্থে সাক্ষাত করা
 হোটেল, বিনোদনকেন্দ্র এবং  অ্যাপার্টমেন্ট বিশ্রামাগার।
 ট্যাক্সি ( কেবল ১ জন যাত্রী  বহন করে)

চতুর্থ ধাপ
পূর্বোল্লিখিত প্রতিষ্ঠানগুলোসহ স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ে বিধি মেনে নিম্নে বর্ণিত প্রতিষ্ঠানগুলো চতুর্থ ধাপে খুলে দেওয়া হবে

 সরকারী সংস্থা এবং বেসরকারী খাতে কর্মক্ষেত্র (৫০% এর বেশি উপস্থিত থাকতে পারবে)
 রেস্তোঁরা এবং ক্যাফে (সামাজিক দূরত্বসহ)
 গণপরিবহণ (সামাজিক দূরত্বসহ)

পঞ্চম ধাপ
পূর্বোল্লিখিত প্রতিষ্ঠানগুলোসহ স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ে বিধি মেনে নিম্নে বর্ণিত প্রতিষ্ঠানগুলো পঞ্চম   ধাপে খুলে দেওয়া হবে-
 সরকারী এবং বেসরকারী সংস্থার কর্মক্ষেত্র (৫০% এর বেশি উপস্থিত থাকতে পারবে)
 পারিবারিক এবং সামাজিক অনুষ্ঠান এবং সমাবেশ
 বিবাহ, স্নাতকসহ বিভিন্ন ধরণের অনুষ্ঠানাদি
 স্বাস্থ্য পরিচর্যা ও  স্পোর্টস ক্লাবসমূহ
 বিভিন্ন সম্মেলন, সাংস্কৃতিক প্রদর্শনী এবং প্রশিক্ষণ কোর্স 
 ব্যক্তিগত পরিষেবাসমূহ (সেলুন এবং বিউটি পার্লার বিনোদনকেন্দ্র)
 সরকারী এবং বেসরকারী ক্রীড়াঙ্গন
 সিনেমা হল এবং নাট্যশালা।

স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের শর্তসমূহ

দূরত্বের শর্তসমূহ
 কর্মক্ষেত্রগুলি অবশ্যই পুনরায় সাজানো উচিত যাতে কর্মচারীদের মধ্যে দূরত্ব ব্যক্তি প্রতি ১০ বর্গ মিটার বা ২ মিটারের চেয়ে কম না হয়।
 অফিসের চেয়ার এবং অন্যান্য আসবাব পত্রের মাঝে  কমপক্ষে ২ মিটার দূরত্ব বজায় রাখা
 নিশ্চিত করুন অফিসে চলাচলের পথও যেনো কমপক্ষে ২ মিটার প্রশস্ত হয়
 বিশ্রামাগার এবং উপাসনালয়গুলিতে গণজমায়েত পরিহার করুন
 কর্মক্ষেত্রে বা অন্য কোথাও জামাতবদ্ধভাবে খাওয়া-দাওয়া রোধ করুন, এবং বাসার ভিতরে এককভাবে একটি প্লেট একজনে ভালোভাবে ধুয়ে ব্যবহার করুন।
 রঙিন ফ্লোর স্টিকারগুলির মতো প্রতিটি কর্মক্ষেত্রে উপরের নির্দেশনাবলীগুলো দৃষ্টিতে পড়ে এমনভাবে সেট করুন।   
 ব্যক্তিগত সুরক্ষার জন্য দূরত্ববজায় রাখাসহ অন্যান্য বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া।   
 শ্রমিকদের পাশাপাশি  সাক্ষাতকারীদের সাথেও দূরত্ব বজায় রেখে যোগাযোগ করুন।

ব্যক্তিগত সুরক্ষা পদ্ধতি
 কার্যক্ষেত্রে মাস্ক পরিধান করা  সর্বদা বাধ্যতামূলক  এবং যারা এ বিধি মেনে চলবেন না তাদের জবাবদিহি করতে হবে।
 কর্মক্ষেত্রের সমস্ত সরঞ্জমাদি, অফিস, টেবিল, ব্ল্যাকবোর্ড ইত্যাদি ভাগাভাগি করে ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। 
 পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের ব্যক্তিগত সুরক্ষা দেওয়ার পাশাপাশি ব্যবহৃত ফ্লোর এবং টয়লেটগুলি নির্বীজন করার যত্নবান থাকতে হবে। মাস্ক ব্যবহার এবং প্রতিরক্ষামূলক পোশাক পড়া এবং ডিটারজেন্ট, সাবান এবং জীবাণুমুক্তকরণ স্প্রে  সরবরাহ করা, এবং ঘনঘন কর্মক্ষেত্রে হাত ধোওয়া।
 কাগজ বা নথীপত্র এবং নগদ অর্থ হাতে হাতে লেনদেন পরিহার করে  অনলাইন পদ্ধতিতে সরবরাহ করতে অভ্যস্থ হোন।   
এই মহামারী চলাকালীন সময়ে দূরত্ব বজায় রেখেই সমস্ত কার্যকলাপ আঞ্জাম দেওয়া জরুরি। তবেই সামগ্রিকভাবে ঝুঁকি হ্রাস পবে।   যদি আপনার পক্ষে  সম্পূর্ণভাবে দূরত্ববজায় রেখে কাজ করা সম্ভব না হয়, তাহলে যতটুকু সম্ভব দূরত্ব বজায়ে কাজ সম্পাদন করে যান।  যেসব কাজ ব্যক্তি উপস্থিতি ছাড়া সম্ভব নয়, সেগুলো এমন ক্রিয়াকলাপগুলির মধ্যে সীমাবদ্ধ যা দূর থেকে কাজ করতে পারে না।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দিকনির্দেশনার উদাহরণ
 সমবায় সমিতি বা জামইয়া এবং খাদ্য প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রস্তাবিত স্বাস্থ্য পরামর্শ 
 সরকারী ও বেসরকারী শ্রমসংস্থার জন্য প্রস্তাবিত স্বাস্থ্য নির্দেশিকা
 মসজিদ এবং উপাসনালয়ের জন্য স্বাস্থ্য নির্দেশিকা 
 বাণিজ্যিক কমপ্লেক্সগুলি এবং রেস্তোঁরাসমূহ এবং ক্যাফে পুণরায় খোলার জন্য প্রস্তাবিত স্বাস্থ্য নির্দেশিকা

নতুন আরোও ৩ জন করোনায় আক্রান্ত

নতুন আরোও ৩ জন করোনায় আক্রান্ত




দিনাজপুর প্রতিনিধি :গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আরো ৩ জন করোনা আক্রান্তসহ দিনাজপুর জেলায় মোট করোনা শনাক্ত রোগি সংখ্যা ২২৭ জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে পার্বতীপুরে ১ জন, চিরিরবন্দরে ১ জন ও বিরল উপজেলায় ১ জন।
রবিবার (৩১ মে) রাত সাড়ে  ৯টায় দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা: মো. আব্দুল কুদ্দুস জানান, গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নতুন আরো ৩ জন করোনায় আক্রান্তের খবরটি নিশ্চিত করেন। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত রোগির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২৭ জনে।
সিভিল সার্জন আরো জানান, আক্রান্ত ২২৭ জনের মধ্যে রয়েছে সদর উপজেলায় ৫৫ জন (মৃত একজনসহ), কাহারোলে ১৩ জন, বিরলে ২৬ জন, বোচাগঞ্জে ৯ জন, পার্বতীপুরে ১৫ জন, ফুলবাড়ীতে ৭ জন, নবাবগঞ্জে ২১ জন, হাকিমপুরে ৪ জন, খানসামায় ৮ জন, বিরামপুরে ২১ জন, ঘোড়াঘাটে ২৬ জন, চিবিরবন্দরে ১২ জন ও বীরগঞ্জ উপজেলায় ১১ জন। 
তিনি জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ৩ জনসহ এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৫২ জন। বর্তমানে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ১৪৪ জন, প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রয়েছেন ২২ জন, হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৮ জন ও একজনের মৃত্যু হয়েছে। 
সিভিল সার্জন আরো জানান, রবিবার ৩১ মে দিনাজপুর ল্যাব হতে মোট ৫৫টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৩টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ ও বাকী ৫২টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। এ নিয়ে দিনাজপুর জেলায় করোনায় (কোভিট-১৯) প্রমানিত রোগির সংখ্যা দাড়ালো ২২৭ জন। 
এছাড়া রবিবার ১০৭টি নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। এ পর্যন্ত ৩৪০৯টি নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ৩৩৩১টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। আর গত ২৪ ঘন্টায় ১১৮ জনসহ বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ২১৬৭ জন।

সংসদীয় আসনের ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত আজ

সংসদীয় আসনের ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত আজ




মোঃহাসান রিফাতঃ

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিনক্ষণ নির্ধারণ এবং দেশের চারটি সংসদীয় আসনের শূন্য আসনের উপনির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এজন্য আজ সোমবার (১ জুন) বৈঠকে বসবেন নির্বাচন কমিশনাররা। এদিন বিকাল চারটায় কমিশনের ৬৩তম এ সভা অনুষ্ঠিত হবে।

দেশের ৪টি সংসদীয় আসন শূন্য থাকায় উপনির্বাচন অনুষ্ঠানে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। বিষয়টি মাথায় রেখে সরকারি অফিস আদালত খুলে দেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জরুরি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে করোনাকালের মধ্যে এ কমিশন সভা হতে যাচ্ছে।

ইসি উপসচিব মো. শাহ আলম স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

নোটিশে জানানো হয়েছে, এ বৈঠকে ৬টি আলোচ্যসূচি রয়েছে। এগুলো হলো প্রতিনিধিত্ব আইন, ২০১০ এর খসড়া বিল অনুমোদন, রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন আইন প্রণয়ন, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রণীত আইন বাংলা প্রণয়ন, জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর স্থগিত নির্বাচনের ওপর আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণ আইন ২০১০ এবং বিবিধ।

সংসদ সদস্যদের মৃত্যুজনিত কারণে বগুড়া-১, যশোর-৬, পাবনা-৪ ও ঢাকা-৫ সংসদীয় আসন বর্তমানে শূন্য রয়েছে। এরমধ্যে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনের উপনির্বাচনের তফসিল হলেও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ কারণে শেষ মুহূর্তে তা স্থগিত হয়। ওই কারণে স্থগিত হয় চট্টগ্রাম সিটির ভোট। ২৯ মার্চ এর তিনটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল।

এরইমধ্যে পাবনা ৪ ও ঢাকা-৫ আসনের সদস্যদের মৃত্যু হওয়ায় এ দুটি আসনও শূন্য হয়েছে।

সংসদীয় আসন শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ সংসদীয় আসনে সেটা মানা সম্ভব হয়নি। তবে সংবিধানে এও বলা আছে ‘দৈব-দুর্বিপাকের কারণে’ উপনির্বাচন করার জন্য আরও ৯০ দিন পাওয়া যাবে। নির্বাচন কমিশন এখন সেই সুযোগ নিচ্ছে। এরপরও করোনার কারণে নির্বাচন করতে না পারলে রাষ্ট্রপতির কাছে যাবে ইসি।

এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করার নিয়ম

এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করার নিয়ম





চট্টগ্রাম প্রতিনিধি।
মোঃহাসান রিফাত

: এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন শুরু হবে আগামী ১ জুন থেকে। যাদের ফল আশানুরূপ হয়নি তারা এ আবেদন করনে নিন্মোক্ত নিয়মে।
১ জুন টেলিটক সংযোগ থেকে RSC <স্পেস> বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর <স্পেস> রোল নম্বর <স্পেস> বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে। একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের জন্য আবেদন করতে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেয়া হবে তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নম্বর) দেয়া হবে।
আবেদনে সম্মত থাকলে RSC <স্পেস> YES <স্পেস> পিন নম্বর <স্পেস> যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য ১২৫ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে। যেসব বিষয়ের দুটি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে, সেসব বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে মোট ২৫০ টাকা ফি কাটা হবে।
আগামী ১ জুন থেকে ৭ জুন পর্যন্ত ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে বলে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

মূমূর্ষ আল্লামা নূরুল ইসলাম হাশেমীকে ভর্তি নেয়নি দুইটি হাসপাতাল

মূমূর্ষ আল্লামা নূরুল ইসলাম হাশেমীকে ভর্তি নেয়নি দুইটি হাসপাতাল




চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ
মোঃহাসান রিফাত

দেশবরেন্য আলেমে দ্বীন, ইমামে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত বাংলাদেশের আল্লামা শাহসূফী কাযী মুহাম্মদ নূরুল ইসলাম হাশেমী (মু জি আ) কে মূমূর্ষ অবস্থায় চিকিৎসা না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রামের দুইটি বেসরকারী হাসপাতালের বিরুদ্ধে।

শনিবার চট্টগ্রামের মেট্টোপলিটন হাসপাতাল এবং ডেলটা হেলথ কেয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দীর্ঘ ৪ ঘন্টা অপেক্ষা করিয়েও ভর্তি নেয়নি ৯১ বছর বয়সী দেশের শীর্ষ এই ইসলামী চিন্তাবিদকে। ‘করোনামুক্ত সনদ’ ছাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হবেনা বলে এসময় রোগীর পরিবারকে জানানো হয়।

দীর্ঘদিন ডায়বেটিকস ও আ্যজমা রোগে আক্রান্ত আল্লামা নূরুল ইসলাম হাশেমীর রক্তের গ্লূকোজের মাত্রা কমে গেলে শনিবার সকাল ১১টায় নগরীর ওআর নিজাম রোডে অবস্থিত মেট্টোপলিটন হাসপাতালে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার হার্টের কয়েকটি পরীক্ষা করলেও ভর্তি নিতে আপত্তি জানান। পরে আল্লামা হাশেমীর পরিবারকে হাসপাতাল থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, করোনাভাইরাস নেগেটিভ কাগজপত্র (করোনামুক্ত সনদ) ছাড়া তারা কোন রোগী ভর্তি নিবেনা।

আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমীর পরিবার সূ্ত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ দুইঘন্টা মেট্টোপলিটন হাসপাতালে আকুতি মিনতি করেও তাদের মন গলানো সম্ভব হয়নি। বেলা ১টার পরে আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমীকে নগরীর পাঁচলাইশ মোড়ে ডেলটা হেলথ কেয়ার হসপিটালে নেওয়া হয়। দীর্ঘসময় হাসপাতালের বাইরে এ্যাম্বুলেন্সে অপেক্ষা করার পর ডিউটি ডাক্তাররা আল্লামা হাশেমীকে আবারো বুকের কিছু এক্সরে করিয়ে যথারীতি ভর্তি করানো সম্ভব নয় বলে জানায়। এসময় আল্লামা হাশেমীর এ্যাম্বুলেন্সে থাকা অক্সিজেনের গ্যাস ফুরিয়ে গেলে তিনি শ্বাসকষ্টে ভুগতে থাকেন। আল্লামা হাশেমীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. মনির আযাদ হাসপাতালে দায়িত্বরতদের কাছে অক্সিজেন সহায়তা চেয়েও ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানা গেছে।

আল্লামা নুরুল ইসলাম হাসেমির ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. মনির আযাদ দেশরিভিউকে বলেন, সকাল ১১টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত মেট্টোপলিটন হাসপাতাল এবং ডেলটা হেলথ কেয়ার হসপিটালে ঘুরে হুজুরের চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারেনি। তাদের একটাই কথা, রোগীর শরীরে করোনা ভাইরাস নেই এই মর্মে ‘করোনামুক্ত সনদ’ প্রদর্শন করতে হবে। এসময় অক্সিজেনের গ্যাস ফুরিয়ে যাওয়াতে হুজুরের শ্বাসকষ্ট শুরু হলেও হাসপাতাল থেকে অক্সিজেন সাপোর্ট পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

ডা. মনির আযাদ বলেন, বেলা তিনটার পরে হুজুরকে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি মা ও শিশু হাসপাতালের আইসিইউ’তে চিকিৎসাধীন আছে।