ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগরে ধর্ষণ মামলায় একজন আটক

ব্রাহ্মণবাড়িয়া  নবীনগরে ধর্ষণ মামলায় একজন আটক




ডিএমসি রকিব নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনার তিন দিন পর ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় ওই অপহরণকারী যুবক রিয়াদুল ইসলাম শান্ত(২০)কে আটক করা হয়।
শনিবার ওই স্কুল ছাত্রীর মা শিল্পী আক্তার বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নবীনগর থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ধর্ষিতা ছাত্রীকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত যুবক উপজেলার রসুল্লাবাদ পশ্চিম পাড়া গ্রামের হাজী আবদুর রউফ মিয়ার ছেলে।
সূত্র জানায়, উপজেলার বাড়িখলা গ্রামের ওই শিক্ষার্থী লাউর ফতেহপুর আর.এন.টি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী গত ৮জুন সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর আর বাড়ি ফিরেনি। পাড়া প্রতিবেশী ও আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে খুঁজা খুঁজি করে নাবালিকা ওই ছাত্রীকে না পেয়ে তার পরিবারের পক্ষ থেকে ১০জুন নবীনগর থানায় একটি নিখোঁজ সাধারণ ডায়েরী করেন।
মামলা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বখাটে রিয়াদুল ইসলাম শান্ত তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় এবং জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ওই গ্রামে অভিযান চালালে রিয়াদুল ইসলাম শান্ত ওই ছাত্রীকে নিয়ে অন্যত্র পালিয়ে যায়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার (১২/০৬) বিকেলে নবীনগর পৌর এলাকার শেখ রাসেল স্টেডিয়ামের সামনে থেকে ওই স্কুল ছাত্রীসহ অপহরণকারীকে আটক করে পুলিশ। গতকাল শনিবার (১৩/০৬) ওই স্কুল ছাত্রীর মা শিল্পী আক্তার বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নবীনগর থানায় মামলা করেন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নবীনগর থানার ওসি (তদন্ত) রুহুল আমিন বলেন, এই ঘটনায় ওই স্কুল ছাত্রীর মায়ের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে নবীনগর থানায়, নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে, একটি অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের হয়েছে। আটক রিয়াদুল ইসলাম শান্তকে আদালতে ও ভিকটিমকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলাটি তদন্তপূর্বক পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ঝিনাইদহ কোটচাঁদপুরে মহিলা মেম্বার কে ধর্ষণের অভিযোগে সামাউল মেম্বার গ্রেফতার

ঝিনাইদহ কোটচাঁদপুরে মহিলা মেম্বার কে ধর্ষণের অভিযোগে সামাউল মেম্বার গ্রেফতার



খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি 

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে এক মহিলা ইউপি সদস্যকে ধর্ষণের অভিযোগে মোঃ সামাউল হক (৫০) নামে এক ইউপি সদস্যকে আটক করেছে থানা পুলিশ। ধর্ষণের অভিযোগ এনে বৃহস্পতিবার দুপুরে বলুহর ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা ইউপি সদস্য মোছাঃ মর্জিনা খাতুন বাদী হয়ে কোটচাঁদপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। ওই দিন রাতেই আসামী সামাউল হককে আটক করা হয়। আটককৃত সামাউল হক উপজেলার বকশিপুর গ্রামের মোঃ ছানার উদ্দীনের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানাযায়, উপজেলার ফুলবাড়ী গ্রামের মৃত ফকির চাঁদ গাজীর মেয়ে ৪নং বলুহর ইউনিয়নের ৪নং সংরক্ষিত মহিলা আসনের ইউপি সদস্য মোছাঃ মর্জিনা খাতুন (৪৫) এর সাথে পার্শ্ববর্তী কুশনা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোঃ সামাউল হকের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

সম্পর্কের এক পর্যায়ে গত ১৪-০২-২০১৮ তারিখ বিকালে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি কক্ষে মৌলভী কাজী মোঃ ছব্দুল সাক্ষী মোঃ ইয়ারুল ইসলাম ও মোঃ জামাল উদ্দীনের উপস্থিতিতে মৌখিকভাবে ৪ লক্ষ টাকা কাবিনে বিবাহ সম্পন্ন করেন।

বিবাহের পর থেকে ইউপি সদস্য মোছাঃ মর্জিনা খাতুন স্ত্রী হিসাবে ইউপি সদস্য সামাউল হককে বলেন। কিন্তু সামাউল বিভিন্ন বাহানা করে এড়িয়ে যায়। পরবর্তিতে সামাউল হক মর্জিনাকে কোটচাঁদপুর সনি আবাসিক হোটেল ও চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার হরিন নগর গ্রামের এক পরিচিত’র বাড়িতে নিয়ে দৈহিক মেলামেশা করতে থাকে।

বাদী মর্জিনা খাতুন এজাহারে উল্লেখ করেন, আমি একজন ইউপি সদস্য হওয়ায় আসামী সামাউল হক বিভিন্ন প্রকার প্রলোভন দেখিয়ে দুই থেকে আড়াই লক্ষ টাকা নেয়। এবং আমার সরলতার সুযোগে মিথ্যা বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে আমার সাথে দৈহিক মেলামেশা করতে থাকে। গত ১৪ মে সকালে কুশনা ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে সামাউলকে স্ত্রী হিসাবে গ্রহন করতে বলি। কিন্তু সে আমাকে স্ত্রী হিসাবে গ্রহন করবে না বলে জানায়। বিষয়টি নিয়ে উভয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের সাথে নিয়ে মিমাংস করার চেষ্টা করেও কোন ফল হয়নি।

এব্যাপারে বলুহর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন জানান, দীর্ঘদিন যাবত তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু বিবাহের কোন কাগজ পত্র দেখাতে না পারলেও আটকের পর থানায় তাদের বিবাহের কথা স্বীকার করেছেন।

কোটচাঁদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুল আলম ঘটনার সতত্য নিশ্চিত করে জানান, বৃহস্পতিবার (১১জুন) ইউপি সদস্য মর্জিনা খাতুন থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংসোধনী/০৩ এর ৯(১) ধারায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২ । পরে তাকে আটকের পর জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়

করোনার চিকিৎসায় পতেঙ্গায় চালু হল ৫০ শয্যার হাসপাতাল

করোনার চিকিৎসায় পতেঙ্গায় চালু হল ৫০ শয্যার হাসপাতাল




 
মোঃহাসান রিফাত
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
 
করোনার চিকিৎসায় পতেঙ্গায় চালু হল ৫০ শয্যার হাসপাতাল
নগরের কাটগড় মোড়ে পতেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ে অস্থায়ীভাবে গড়ে তোলা ৫০ শয্যার ‌‘ইপিজেড পতেঙ্গা করোনা হাসপাতালের উদ্বোধন হয়েছে। শনিবার (১৩ জুন) সকালে হাসপাতালের বর্হিবিভাগের উদ্বোধন করা হয়। 

এসময় উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালের প্রধান উদ্যোক্তা ডা. হোসেন আহম্মদ, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর শাহানুর বেগম ,পতেঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উৎপল বডুয়া।

হাসপাতালটি চালু হওয়ায় চিকিৎসা সেবা মিলবে উত্তর ও দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ডের প্রায় ৭ লাখ মানুষের। স্থানীয়দের অর্থায়নে তৈরি এ হাসপাতালে আগামীকাল রোববার অথবা সোমবার থেকে রোগী শুরু হবে রোগী ভর্তি প্রক্রিয়া।

হাসপাতালের প্রধান উদ্যোক্তা ডা. হোসেন আহম্মদ বলেন,  আজ আনুষ্ঠানিক ভাবে হাসপাতালে বর্হিবিভাগ চালু করা হয়েছে। অফিসিয়ালি কিছু প্রক্রিয়া বাকি রয়েছে যা শেষ করে আশা করে রবি অথবা সোমবার থেকে রোগী ভর্তি করানো যাবে। হাসপাতালে ৬ জন চিকিৎসক দায়িত্ব পালন করবেন। আরও কয়েকজন চিকিৎসক আনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি । এ ছাড়া  ২ জন নার্স এবং এবং ২ জন আয়া নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

স্বেচ্ছাসেবক রানা তালুকদার সিভয়েস কে বলেন, সকালে উদ্বোধনের এর পর একজন রোগী কে চিকিৎসার মাধ্যমে হাসপাতালে কার্যক্রম শুরু হয়। ১ জন নার্স, ১ জন আয়া ও আমরা ২০ জন স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছি। আরও বেশ কয়েকজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

মোংলায় মৎস্য ব্যাবসায়িকে হামলার ঘটনায় মামলা, আসামী গ্রেফতার নেই

মোংলায় মৎস্য ব্যাবসায়িকে হামলার ঘটনায় মামলা,  আসামী গ্রেফতার  নেই




মোংলা প্রতিনিধিঃ সুন্দরবনের খালে বিষ দিয়ে মাছ শিকারের প্রতিবাদ করায় এক মৎস্য ব্যবসায়ী ও তার মেয়েকে হামলার ঘটনায় মোংলা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এঘটনায় পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারে গড়িমসি করছে বলে ভুক্তভোগী মৎস্য ব্যবসায়ী অভিযোগ করেছেন।

গত ৭ জুন রোববার মোংলায় চিলা ইউনিয়নের বৈদ্দমারী বাজারে বিষদিয়ে মৎস্য শিকার করার প্রতিবাদ করলে মৎস্য ব্যবসায়ী গনি ব্যাপারীর ওপর হামলা চালায় স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। এসময় গনি ব্যাপারীর মেয়ে রহিমা বেগম বাধা দিতে এলে তার ওপরও এলোপাথাড়ি হামলা চালায়। এতে তারা দুজনই গুরুতর আহত হন। এরপর স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এব্যাপারে মোঃ নজরুল ব্যাপারী (৩৫), মোঃ শহিদ ব্যাপারী (৩০), মোঃ মহিদ ব্যাপারী (২২), মোঃ জাহিদ ব্যাপারী (২০), মোঃ আঃ রহিম ব্যাপারী (৪০) ও মোঃ মিলন ব্যাপারী (১৮)সহ ছয়জনকে আসামী করে গত সোমবার মোংলা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন গনি ব্যাপারী। পরে উভয় পক্ষের অভিযোগ তদন্ত করে নজরুল গংদের বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করে পুলিশ। যার নম্বর-৬। তারিখঃ ১০/ ০৬/ ২০২০।

এব্যাপারে ভুক্তভোগী গনি ব্যাপারী বলেন, বিষদিয়ে মাছ ধরার ব্যাপারে প্রতিবাদ করায় আমাদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে মামলা নিলেও আসামীদের গ্রেফতার করছে না।

এবিষয়ে মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, এঘটনায় মামলা নেওয়া হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদি করোনায় আক্রান্ত!

পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদি করোনায় আক্রান্ত!



ক্রীড়া ডেস্কঃ 
পাকিস্হানের সাবেক অধিনায়ক ও অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদির শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।আজ(১৩জুন) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি নিজেই এ তথ্য জানান এবং দ্রুত আরোগ্য লাভের জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।
করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই তিনি  নিজ দেশের অসহায় ও কর্মহীন মানুষজনের পাশে দাড়িয়েছিলেন।তিনি হাজারো দুস্থ ও অসহায় মানুষজনকে আর্থিক ও খাদ্য সহায়তা দিয়েছিলেন।নিজ হাতে দুস্থদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য ও সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করে তিনি ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন এবং এখন তিনি নিজেই করোনা আক্রান্ত।
এ পর্যন্ত তিনি ২৭ টি টেস্ট,৩৯৮টি ওডিআই এবং ৯৯টি টি২০ ম্যাচ খেলেছেন।তিনি ২০১১ সালে ওডিআই বিশ্বকাপে পাকিস্থান দলের নেতৃত্বদেন।পাকিস্থানের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের মধ্যে তিনি দ্বিতীয় ক্রিকেটার। এর আগে তৌফিক ওমর করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন এবং কিছুদিন আগে তিনি আরোগ্য লাভ করেন।

উপশহর টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে জীবাণুনাশক টানেল এর উদ্বোধন

উপশহর টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে জীবাণুনাশক টানেল এর উদ্বোধন




মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ১৩ জুন শনিবার করোনাভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে উপশহর টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে জীবাণুনাশক টানেল এর উদ্বোধন করা হয়। উক্ত জীবাণুনাশক টানেলটি’র কার্যক্রম উদ্বোধন করেন অত্র প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ,দিনাজপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র এবং ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু তৈয়ব আলী দুলাল এসময় উপস্থিত ছিলেন গ্লোরিয়াস রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আহসানুজ্জামান চঞ্চল, সামাজিক সংগঠন আলোর পথে যাগো যুব, দিনাজপুর এর উপদেষ্টা চেয়ারম্যান মকিদ হায়দার শিপন, সংগঠনের সভাপতি মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন, গবেষণা সহযোগী মোঃ নাঈম ও গোলাম মোস্তফা প্রমূখ।জীবাণুনাশক টানেলটি’র উদ্বোধনকালে প্যানেল মেয়র আবু তৈয়ব আলী দুলাল বলেন, আলোর পথে যাগো যুব, দিনাজপুর এর এই মহামারির প্রাক্কালে তাদের খুদ্র প্রচেষ্টায় স্বল্প খরচে এই ধরনের কার্যক্রম দেখে আমি অভিভুত, এই যুবকদের উৎসাহ প্রদান করে তাদের কাজের মনোভাব বাড়ানোর জন্য সমাজের সকলের এগিয়ে আসা উচিৎ বলে আমি মনে করি। এই ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের পাশে সমাজের বিত্তবানেরা দাড়ালে তারা দেশ ও জাতির সেবার কাজে যতেষ্ট ভুমিকা পালন করবে আমি আশাবাদী।

করোনা মোকাবেলায় কাজ করছে,,উমর মজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠন

করোনা মোকাবেলায় কাজ করছে,,উমর মজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠন



মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ।
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
গত ১০/০৬/২০২০ ইং তারিখে কুড়িগ্রাম জেলার,রাজারহাট উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের ২ নং  ওয়ার্ডের আলীজান বেগম নামের একজন করোনা রোগীর সনাক্ত  হয়।তার          স্বামী মকবুল হোসেন। রাজমাল্লীর হাট থেকে পশ্চিমে মধ্যপাড়া মসজিদ থেকে উত্তরে দানানগর এলাকায়।পরে প্রশাসন সেই বাড়ির আশে পাশে মোট সাতটি বাড়ি লকডাইন ঘেষণা করে।এই লকডাইনের কারনে পরিবারগুলো অসহায় হয়ে পড়ে।পরিবার গুলোর একটু  কষ্ট লাগবোর জন্য তাদের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িতে দেয়,,কুড়িগ্রাম জেলার একটি সমাজসেবা মৃলক ও অনুদান ভিওিক সংগঠন"" উমর মজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠনের,পক্ষে থেকে 14 দিনের খাবার সামগ্রী ঐ সাতটি বাড়ির হাতে উপহার হিসেবে তুলে দেয়।
এই সংগঠনের সভাপতি মোঃআমিনুল ইসলাম ভাই সাথে কথা বলে জানা যায়,,তার সংগঠন, যে কোনো সময়ে করোনা মোকাবেলায়,,দুযোগকালীন মোকাবেলায় সব সময় মানুষের পাশে থাকবে।
উক্ত সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মোঃবজলুল করিম ভাই বলেন,,উমর মজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগঠনের,, প্রতিটি সদস্য মানুষের পাশে থাকবে।ছায়ার মত মানুষের জন্য কাজ করবে।

উলিপুরে দশম শ্রেনীর ছাত্রীকে বিয়ে ছাড়াই ৬ মাসের সংসারের অভিযোগ!

উলিপুরে দশম শ্রেনীর ছাত্রীকে বিয়ে ছাড়াই ৬ মাসের সংসারের অভিযোগ!




 মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের উলিপুরে দূর্গাপুর জানজায়গির  এলাকায় আখি আলো দশম শ্রেনীর এক ছাত্রী কে মিথ্যা আশ্বাস ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের ক্ষমতার অপব্যবহার করে  ছয় মাস নিজের দোকানের গুদামে বউ এর পরিচয়ে রাখে। বিয়ে করার কথা বলায় আখিকে  নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে । এ ঘটনার  ছাত্রী নিজে বাদী হয়ে উলিপুর থানায় তার এক ভাই মারফত  স্ত্রী ও দুই সন্তানের জনক আহসান হাবীব মিঠুর নামে ১০ই জুন  লিখিত অভিযোগ দিলেও এ পর্যন্ত পুলিশ কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় পরিবারটি অনিশ্চয়তায় পরেছে বলে জানা যায়। ।  

ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত আহসান হাবীব মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হকের ছেলে এবং ব্যক্তি জীবনে বিবাহিত স্ত্রী ও দুই ছেলে   একজন ছয় বছরের নাম রাফি, অন্যটি দুই বছরের নাম আয়াত   সন্তানের জনক বলে জানা যায়। আখি আলোর অভিযোগ অবৈধভাবে জোরপুর্বক তাকে নিয়ে মাসের পর মাস আলাদা গুদাম ঘরে স্ত্রীর পরিচয়ে রাখছে।  সামাজিক, ধর্মীয় ও আইনত বিবাহের কথা বললেই নির্যাতন চালায়, বাবার বাড়িতে গেলে মুক্তি নাই সেখানেও। সকাল বিকাল তাকে ফেরত  নিতে চাপ প্রয়োগ করে এবং গরীব কৃষক পরিবার মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের প্রভাব প্রতিপত্তির সাথে কুলিয়ে উঠতে না পেরে বাড়ি ঘড় ছেরে পালিয়ে বেরাচ্ছেন।  এক ঘটনায় মামলার আসামী  ও মেয়ের নিরাপত্তাহীনতায় আজ ১০  দিন  ঘড় বাড়ি ছেরে পালিয়ে বেরাচ্ছে বলে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দূর্গাপুর লালখারটারী এলাকার আলমগীর হোসেনের মেয়ে আখি আলো কামাল খামার দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেনীর একজন মেধাবী ছাত্রী। আখি আলো অষ্টম শ্রেনিতে বৃত্তি পেয়েছিলো ও প্রত্যেকটি ক্লাশ শ্রেনী পরীক্ষায় প্রথম / দ্বিতীয় হয়ে আসা মেয়েটির ভাগ্য অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে ধাবিত হলেও সুবিচার মিলছে না কোথাও ।  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং   আহসান হাবীব রংপুরে ১ মাস ঘড় ভাড়া করে আখি কে নিয়ে বউ এর মত ব্যবহার করে বলে আখি তার লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছে। এরপর বাড়িতে ফিরে বিবাহ করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে   প্রতারনামুলক ভাবে ৫/৬ মাস ধরে ঘড় সংসার করার নামে জানজাগির বাজারের নিজস্ব গুদাম ঘরে ধর্ষন ও নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে। 

আহসান হাবীব মিঠু র সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে, সে  আখির সাথে ঘড় সংসার করার কথা স্মীকার করে।  তিনি কুড়িগ্রাম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন,মামলার বিষয়ে  কিছু জানতেন না। বিয়ে না করে ৬ মাস ঘর সংসার ও  মারামারিতে যারা ছিলো না এমন নিরাপরাধ মহিলাদের আসামী করে মামলা দেয়ার সদুত্তর তিনি দিতে পারেন নি। আহসান হাবীব মিঠু আখি আলোকে আবার ফিরিয়ে নিবে কিন্তু আইন ও সামাজিক বৈধতা কিভাবে আসবে সে বিষয়ে সঠিক জবাব দিতে পারে নাই। স্থানীয়দের অভিযোগ বিভিন্ন কৌশল, হয়রানি ও ভয়ভীতির উপর আখিকে নিজের বউ বলে মানসিক বিকৃতির পরিচয় দিলেও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান হওয়ায় ক্ষমতার দাপটে গ্রামবাসী  চুপচাপ সহ্য করে যাচ্ছেন। 

দূর্গাপুর ইউপি মেম্বার নুর ইসলাম  আখি ও আহসান হাবীব মিঠুর একসাথে জানজাগীর বাজারে দোকান গুদামে বিবাহিত পরিচয়ে জীবন যাপন করেছেন বলে স্মীকার করেন। আখি আলো ঐ গুদাম ঘরে থাকাকালিন স্থানীয় মেম্বার হিসেবে বৈধতা ছারা তাকে নিয়ে আছে এমন বিচার দেয়ার কথাও স্মীকার করে নুরইসলাম বলেন, ছেলে বিবাহিত দুই ছেলের বাবা এখানে আমাদের কিছু করার ছিলো না। আখি আলো ঐ ছেলের হাত থেকে মুক্তি চেয়েছিলো কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মেম্বার নীরব ছিলেন। তিনি এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আলমগীর হোসেন আহসান হাবীব কে মারধোরের করার জন্য আফসোস করে বলেন, পুরো ঘটনাটি জটিল হয়ে গেছে। 

এ বিষয়ে উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, এ ঘটনায় পুরো দোষ মেয়েদের। এতদিন চুপ ছিলো এখন বাপ আসামী হওয়ায় আখি ছেলের বিরুদ্ধে নতুন করে অভিযোগ আনছে।, আখির বাবা মেয়ের জীবন নষ্ট করার রাগে রাস্তায় মারপিট করেছে এমন অভিযোগ মেনে নিয়ে ওসি মোয়াজ্জেম  কে প্রশ্ন করা হয়, আখি ও তার মা এবং অপরাপর নিরাপরাধ মানুষরা আসামী হওয়ায় আখি আলোর সাথে বিয়ের নামে যে ধর্ষন করা হয়েছে  তার আইনি সহায়তায় আখির অভিযোগ আমলে  নিতে  বাধা কি?  এর  জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়টা উলিপুর সার্কেল বি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল মাহমুদ স্যার দেখবেন।

গডকাল ১২ জুন স্বন্ধ্যায় আখি আলোর ভাই মোনতাসির বিল্লাহ অতিঃ পুলিশ সুপার আল মাহমুদ হাসানের সাথে অফিসে আখির পাঠানো অভিযোগের খোজ খবর নিতে গেলে অতিঃ পুলিশ সুপার  জানান কোন অভিযোগ তার হাতে আসে নাই। ১০ই জুন উলিপুর থানা ডিউটি অফিসার এএসআই দুলুর হাতে দেয়া আখির অভিযোগ পত্র কোথায় জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্পর্শকাতর অভিযোগ  মনে হওয়ায় তিনি তা ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন কে দিয়েছেন। সূত্র টেনে লিখিত অভিযোগটি এএসপি আল হাসান মাহমুদ পাননি এমন প্রশ্নে তিনি আর একটি নতুন কাগজ জমা দিতে বলেন। 

আখির ভাই বিল্লাহ জানান, অতিঃ পুলিশ সুপার আল মাহমুদ অভিযোগ পত্রটি হাতে নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন।,প্রশাসন আখির অভিযোগ টি গ্রহন করে তদন্ত পুর্বক আদৌ ব্যবস্থা নিতে অগ্রসর হবেন কি না তা নিয়ে সংশয়  প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্ট সকলে।

হবিগঞ্জে নতুন করে আরও ১৩ জনের করোনা সনাক্ত

হবিগঞ্জে নতুন করে আরও ১৩ জনের করোনা সনাক্ত



,

লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি 

হবিগঞ্জে নতুন করে আরও ১৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। শনিবার (১৩ জুন) দুপুরে ঢাকার আগারগাঁওয়স্ত ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ল্যাবরেটরি এন্ড রেফারেল সেন্টার থেকে এই ১৩ জনের করোনা ভাইরাস,

 পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে হবিগঞ্জে, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মুখলেছুর রহমান উজ্জ্বল বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান আক্রান্তদের মধ্যে চুনারুঘাট উপজেলার ৬ জন, বাহুবল উপজেলার ৪ জন ও হবিগঞ্জ সদর উপজেলার,

৩ জন রয়েছে এর মধ্যে ৪ জন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন এ নিয়ে হবিগঞ্জ জেলায় করোনা ভাইরাস শনাক্ত রুগীর সংখ্যা দাড়িলো মোট ২৪০ জন।

 এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন, ১৪২ জন এবং এক শিশু ও এক নারীসহ ৩ জন মারা গেছেন।

কাজিপুর চর ভানুডাঙ্গা গ্রামে জোর পুর্রবক জমি দক্ষলের চেষ্টা, বাধা দানে হাতের আঙ্গুল কর্তন

কাজিপুর চর ভানুডাঙ্গা গ্রামে জোর পুর্রবক জমি দক্ষলের চেষ্টা, বাধা দানে হাতের আঙ্গুল কর্তন



 মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ 
নিজেস্ব প্রতিবেদক: কাজিপুর চর ভানুডাঙ্গা বিলপাড়া গ্রামে জোড় পুর্রবক পাট ক্ষেতের পাওয়ার টিলার দিয়ে চাষ করে জমি দক্ষলের চেষ্টা করে এতে বাধা দিলে হাতের আঙ্গুল কেটে দেয় এক সন্ত্রাসী বাহিনী। জানা যায় চর ভানুডাঙ্গা গ্রামে মোঃ আবু সাইদ (টেনিস) গত ১২ বছর আগে ভানুডাঙ্গা মৌজার জে এল নং ১৮, আর এস খতিয়ান নং ১১৯, আর এস দাগ নং ৫১৫৬ এর ৬ শতক জমি ক্রয় করেন একই গ্রামের মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে মোঃ গোলাম মোস্তফা (৪৮) তার বাব দাদার পত্তিক সম্পত্তি থেকে ৬ শতক জমি বিক্রি করে একই গ্রামের মোঃ আবু সাইদ (টেনিস) এর কাছে। দীর্ঘ ১২ বছর ধরে সাইদ চাষা বাদ করে আসছে হঠাৎ করে গত ১০/৬/২০২০ইং তারিখ সকাল অনুমান ৮:৩০ ঘটিকায় একই গ্রামের মোঃ নজরুল ইসলাম (৫৫), পিতা মৃত আজিজুর রহমান, মোঃ রেফায়েত ইসলাম খমেনী (৩২), পিতা মোঃ নজরুল ইসলাম, মোঃ শহিন (৩৫), পিতা-মৃত জালাল শেখ, মোছাঃ আখিঁ খাতুন (২৮), পিতা- মোঃ নজরুল ইসলাম, মোঃ কাজল রেখা (৪৫), স্বামী- মোঃ নজরুল ইসলাম এই সন্ত্রসী বাহিনী আবু সাইদের পাট ক্ষেতে পাওয়ার টিলার দিয়ে হাল চাষ করা শুরু করে। এতে মোঃ আবু সাইদ (টেনিস) বাধা দিলে এলোপাতারী মারপিট করে এবং হাতে থাকা দা দিয়ে সাইদ কে মাথায় আঘাত করার চেষ্ঠা করলে বাম হাত দিয়ে সাইদ ঠেকালে তার হাতের বৃধ আঙ্গুল কেটে পরে যায় এবং সব আঙ্গুলই ক্ষত হয়ে যায়। সাইদের আত্ত-চিৎকারে এলাকা বাসি ছুটে আসলে সন্ত্রাসী বাহিনী পালিয়ে যায়। মুমূর্ষ অবস্থায় স্থানীয় লোকজন বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে, ডা: মোঃ সেলিম রেজার তত্বাবধানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে। এই ঘটনায় আবু সাইদের ছেলে মোঃ আবুল কালাম আজাদ গ্রামে মাতব্বর এর কাছে ঘুরে ঘুরে কোন শুরহা না পেয়ে কাজিপুর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। এই ঘটনায় সব কিছুর সত্যতা শিকার করে জমি বিক্রেতা মোঃ গোলাম মোস্তফা, মোজাম্মেল হক (ধলা), জামিল উদ্দিন সহ আরও অনেকেই। এজাহার শূত্রে জানা যায়, আবু সাইদের পাঞ্জাবীর পকেটে থাকা নগদ ২৫০০/- টাকা জোড় পূর্বক ছিনিয়া নেয় এবং পাটের চারা নষ্ট করে অনুমান ৬০০০/- টাকা। এই ঘটনায় আবু সাইদের ছেলে মো আবুল কালাম আজাদ অপরাধীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি করেন। যেন আমাদের মতন কাউকে এই রকম সন্ত্রাসীর কবলে আর পরতে না হয়।

নাসিমের মৃত্যতে সিরাজগঞ্জ বাসী শোকে কাতর

নাসিমের মৃত্যতে সিরাজগঞ্জ বাসী শোকে কাতর
 


মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ
শনিবার সারাদেশের ন্যায় সিরাজগঞ্জেও ঝড়ছিলো অঝোর ধারায় বৃষ্টি। সিরাজগঞ্জের কৃতিসন্তান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রেসিডিয়াম সদস্য, ১৪দলের মুখপাত্র ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ মোহাম্মদ নাসিম এমপির মৃত্যু সংবাদ সিরাজগঞ্জে পৌঁছার সাথে সাথে সিরাজগঞ্জ শহর পুরোদমে স্তব্ধ হয়ে যায়। আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের মাঝে নেমে আসে গভীর শোকের ছায়া। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে প্রচন্ড বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে একে একে দলের নেতাকর্মীরা আসতে থাকেন জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে। এসময় অনেকেই তাদের চোখের পানি সম্বরণ করতে পারেননি। ফুপিয়ে ফুপিয়ে ডুকরে কেঁদে ওঠেন অনেক নেতাকর্মী। তাদের চোখের পানি যেন বৃষ্টির পানির সাথে একাকার হয়ে যাচ্ছিলো। এমন দুঃসংবাদ ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষের চোখে মুখেও ফুটে ওঠে প্রিয়জনকে হারানোর বুকফাটা বেদনার সুস্পষ্ট চিত্র। শত বছরের আর এমন নেতা সৃষ্টি হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন তারা।
এসময় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ বিন আহাম্মেদ বলেন, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিম শুধু জাতীয় নেতাই ছিলেন না, তিনি ছিলেন সিরাজগঞ্জ জেলার অভিভাবক। আজ আমরা সিরাজগঞ্জবাসী অভিভাবকহীন হয়ে গেলাম।
জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জিহাদ আল ইসলাম বলেন, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বড় ধরণের ক্ষতি হয়ে গেলো। মোহম্মদ নাসিম তার সাংগঠনিক যোগ্যতা, দক্ষতা ও কারিশমা দিয়ে ১৪দলকে সুসংগঠিত রেখেছিলেন। মাঝে মধ্যে দলে কিছু ভুল বোঝাবুঝি হলে তিনি তার দক্ষতায় সমাধান করেছেন। তার চলে যাওয়া মেনে নেয়া অতিকষ্ঠের।
সাবেক যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আব্দুর উফ পান্না বলেন, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিম আমাদের রাজনৈতিক শিক্ষাগুরু। ছাত্র, যুব ও আওয়ামী লীগের রাজনীতি আমরা তার কাছ থেকেই শিখেছি। মোহাম্মদ নাসিমের বাবা জাতীয় নেতা শহীদ ক্যাপ্টেন এম. মনসুর আলীর যেমন বঙ্গবন্ধুর সাথে বেঈমানী করেননি, তেমনি তিনিও আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার সাথে বেঈমানী করেননি। তার মৃত্যুতে শুধু সিরাজগঞ্জবাসী নয়, সারা উত্তরবঙ্গের মানুষ অশ্রুভেজা কন্ঠে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছেন।
পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দানিউল হক মোল্লা বলেন, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিম সিরাজগঞ্জের জন্য যে উন্নয়ন করে গেছেন তা আর কোন নেতা পারবেন বলে সিরাজগঞ্জবাসী মনে করেনা। তিনি সিরাজগঞ্জে হাজার হাজার কর্মী সৃষ্টি করেছেন। তিনি আমাদের অভিভাবক ছিলেন। তার মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। আল্লাহ তাকে বেহেস্ত নসিব করুন।
জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বাবু বিমল কুমার দাস বলেন, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিম আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা। তার মৃত্যুতে সিরাজগঞ্জবাসীর সাথে উত্তরবঙ্গ তথা সারা বাংলাদেশ শোকাহত। তিনি আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা। তার মৃত্যুতে আমরা অভিভাবকহীন হয়ে পড়লাম।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ আব্দুল লতিফ বিশ্বাস বলেন, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিম রাজনৈতিক জীবনে রাজপথে সবসময়ই সক্রিয় ছিলেন। রাজনৈতিক আন্দোলনের কারণে বিভিন্ন সময় নির্যাতন সইতে হয়েছে তাকে। রোষানলের শিকার হয়েছিলেন ১/১১ সরকারেরও। কিন্তু আওয়ামীলীগ ও জাতির জনকের রাজনীতির প্রশ্নে তিনি ছিলেন সবসময়ই আপোষহীন। রাজনৈতিক দুরদর্শিতা ও প্রজ্ঞার কারণে তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার আস্থাভাজন। তিনি ছিলেন আমাদের অভিভাবক। তার অভাব কোনদিনও পুরণ হবেনা। তিনি নেতার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে তার শোক সন্তপ্ত পরিবার যেন এ শোক সইতে পারে সে জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে প্রার্থনা করেন। এসময় তিনি জানান, আলহাজ মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে জেলা আওয়ামী লীগ ৭দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- জেলার ১২টি সাংগঠনিক থানায় ৭দিনব্যাপী কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ ও জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ৩দিনব্যাপী কোরআন খতম

করোনা ও শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যকে প্রাধান্য দিয়ে বাজেট করছে জবি

করোনা ও শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যকে প্রাধান্য দিয়ে বাজেট করছে জবি




জবি প্রতিনিধিঃ বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস ও শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যকে প্রাধান্য দিয়ে সাজানো হচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) আগামী বছরের বাজেট। ফলে সম্প্রসারণ করা হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার, ক্রয় করা হবে নতুন ১০ টি বাস, প্রায় ৫০০০ হাজার শিক্ষার্থীকে আনা হবে মেধা ও অবৈতনিক বৃত্তির আওতায় ও স্থাপন করা হবে কোভিড-১৯ সনাক্তকরণ ল্যাব।


শনিবার (১৩ জুন) প্রতিবেদকের সাথে মুঠোফোন আলাপে এতথ্য জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। সেক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের ৪ দফা দাবির অনেকটাই বাস্তবায়ন হবে বলে মনে করছেন উপাচার্য। 


উপাচার্য বলেন, আমরা আমাদের বাজেট মূলত করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা ও শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যকে প্রাধান্য দিয়ে সাজাচ্ছি। আমরা গতবছর বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংখ্যা দ্বিগুণ করেছিলাম এবার সেটা কমপক্ষে ৫ গুণ করবো।  শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাস খোলার পর যাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ক্যাম্পাসে আসতে পারে সেজন্য দশটি নতুন বাস পরিবহন পুলে যুক্ত করা হবে। 


তিনি আরও যুক্ত করেন, মেডিকেলে আরো ২ জন ডাক্তার নিয়োগ করা হয়েছে, ক্যাম্পাস খুললে তারা যোগ দিবেন। মেডিকেলে ঔষধের বরাদ্ধ ১০ গুণ বাড়াবো। এছাড়াও মেডিকেলে ইসিজি মেশিন ও রক্তপরীক্ষার জন্য প্যাথলজিকাল ল্যাব স্থাপন করা হবে। আর আমরা এর আগেই বলেছি কোভিড-১৯ সহ এধরণে প্যান্ডামিক সনাক্তকরণে ল্যাব স্থাপন করা হবে।


এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের দাবিকৃত ৪ দফার কতটা বাস্তবায়ন হবে জানতে চাইলে উপাচার্য বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবি বলে না আমরা এগুলো আগে থেকেই ভেবে রেখেছিলাম, তবে অনেকটাই বাস্তবায়ন হবে। ছাত্রীহল ক্যাম্পাস খোলার পরই খুলে দেওয়া হবে। আর বাড়িভাড়ার বিষয়ে আমরা সাবেক প্রক্টর অধ্যাপক ড. নূর মোহাম্মদকে দায়িত্ব দিয়েছি। তিনি সবার সাথে আলোচনা করে সমাধান সুপারিশ করবেন। তারপর যেখানে যেখানে কথা বলতে হয় আমরা বলবো। আর সেমিস্টার ফি মওকুফের বিষয়টাত আমরা চাইলেই হয়না, আমরা বাজেট চাইতে হবে সরকারের কাছে। আর শিক্ষার্থীদের বৃত্তির সংখ্যাটাতো আমরা কমপক্ষে ৫ গুণ করছি।


জবির ৭ দফা আন্দোলনের সমন্বায়ক মোঃ রাইসুল ইসলাম নয়ন বলেন, করোনা সংকটের প্রথম থেকেই আমরা যারা শিক্ষার্থীদের মেসভাড়া সমস্যা নিয়ে কাজ করছিলাম তাদের নিয়ে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ৪ দফা প্রস্তাব রাখা হয়েছিলো। আমরা এবিষয়ে প্রশাসনের সাথে কথা বলে আসছিলাম। আমরা আশা করছি প্রশাসন সময়ক্ষেপণ না করে পদক্ষেপ নিবে, বিশেষ করে বৃত্তির বিষয়টা দ্রুততার সাথে বাস্তবায়ন করে শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘব করবে।


এবিষয়ে "করোনা মোকাবেলায় জবিয়ানের পাশে জবিয়ান" ফান্ডের সেচ্ছাসেবক কনিক স্বপ্নীল বলেন, প্রশাসনের কাছে আহ্বান দ্রুততার সাথে ৪ দফা বাস্তবায়ন করা হোক। ৪ দফার মধ্যে অতীব গুরুত্বপূর্ণ, অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের বৃত্তির বিষয়টা অতিদ্রুত বাস্তবায়ন করা হোক।


প্রসঙ্গত, এরআগে মেসভাড়া সমস্যার সমাধানের জন্য ৪ দফা প্রস্তাব দেয়া হয় শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এবং ৪ দফা বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দাবি জানিয়ে আসছিলো শিক্ষার্থীরা। ৪ দফার মধ্যে রয়েছে, আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিতে হবে় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে। সরকারের দায়িত্বশীলদের সাথে  সাথে যোগাযোগ করে দ্রুত মেস ভাড়া কমপক্ষে ৫০% মওকুফের ব্যবস্থা নিতে হবে, সেমিস্টার ফি সহ অন্যান্য ফি মওকুফ করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে, ক্যাম্পাস খোলার এক সপ্তাহের মধ্যেই ছাত্রীহল চালু করতে হবে।

ছুটিতে কেমন কাটছে জবি শিক্ষার্থীদের সময়

ছুটিতে কেমন কাটছে জবি শিক্ষার্থীদের সময়





  জা বি প্রতিনিধিঃ
বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের ভয়ানক প্রভাবে জনজীবন বিপর্যস্ত। দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার দরূন ঘর বন্দি হয়ে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ও।


ছুটিরত অবস্থায় ‘কেমন কাটছে জবি শিক্ষার্থীদের জীবন ‘ মতামতের ভিত্তিতে জানাচ্ছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ।



জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ ডিপার্টমেন্টের  শিক্ষার্থী নেয়ামত উল্লাহ বলেন, বদ্ধঘরে বদ্ধজীবন ভাবতেই পরাজয়। সময় কখনো কখনো পরাজয়ের সন্তুষ্টিতে জয়ী হতে, আত্নকেন্দ্রিকও হয়। আগে কখনও কথাগুলোর ব্যবহারিক সত্যতা খুঁজে পাই নি।ভাবতাম নিয়মের ভেতর কেঁটে যাবে এই ক্ষুদ্র জীবন।তবে অনিয়মও নিয়ম হয়ে উঠতে পারে যখন তখন। যেমনটা আজ বদ্ধকেবিনে সবাই জমাচ্ছি দীর্ঘশ্বাস,এক অচেনা তবে কাঙ্ক্ষিত বিশুদ্ধতার অপেক্ষায়। আমার কাছে এই দিনগুলো অনেকটা ভেঙ্গে যাওয়া দূষিত প্রেমের মত।জানি এটাই শ্রেয় তবে মানতে গেলে ফিরে দেখি পুরনো সব মোহ। সময়ের ক্ষেত্রে আসলে দুঃসময় থাকলেও অসময় বলতে কিছু নেই। এই দীর্ঘবিরতি তাই আমার চোখে একটি সুযোগ নিজেকে গুছিয়ে নেওয়ার। সব ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিষয়গুলো গুছিয়ে নিজেকে মুক্ত করা জমে থাকা দায় কিংবা স্বপ্ন থেকে। স্বপ্ন নিয়ে বলতে গেলে বলবো,মানুষের স্বপ্নগুলো অধরা থাকার সবচেয়ে বড় অন্তরায় হচ্ছে সময় নিয়ে তার উপর একটি পরিকল্পনা তৈরি করতে না পারা।আমিও প্রতিষ্ঠিত হয়ে উঠা বা একটা কিছু করে উঠার ইচ্ছা লালন করে চলছি বহুদিন।তার বিধিবাম ও বলা যায় সময়ের স্বল্পতা আর যান্ত্রিক বাস্তব জীবন। তবে এখনতো সময়ের পর সময় তারপরেও সময় তাই কোয়ারেন্টাইনকে ইচ্ছেপূর্ণের প্রথমস্তরে পরিণত করতে দৃঢ়প্রত্যয় নিলাম। বই পড়ার জন্য একটা নিদিষ্ট সময় আর নিদিষ্ট চেয়ার করে নিয়েছি। বই আপনাকে চিন্তাধারা প্রসারণে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করতে পারে তাই এর বিকল্প আর কিছু খুঁজে পাই নি। স্রষ্টার সাথে আত্মার দূরত্বটা মানুষের জন্য নিজেকে হারিয়ে ফেলার মতো তাই সেই বিশ্বাস বা দূরত্বে একটা সমীকরণ করে নিচ্ছি ইদানীং। ভাবতে বসি এখন প্রতিদিনই। ভাবনার বিষয়গুলো হয়, স্বপ্নের সিঁড়িতে তৈরি হতে পারে এমন সব প্রতিকূলতা। আর সেই থেকে নিজেকে সামলে সামনের দিকে অগ্রসর হবার রাস্তা ঘিরে। মানুষকে নিয়েও ভাবি তাদের সমস্যা এবং দায়িত্বে কতটা করবার পথ খোলা সেই অবদ্ধি হেঁটে যাবার চেষ্টাও করেছি বহুবার এই কোয়ারেন্টাইনের দিনগুলোতে। আসলে কোয়ারেন্টাইনের সময়টা দুইটা ভাবে ভাগ করতে চাই। প্রথমটা হবে নিজেকে গুছিয়ে নেবার অধ্যায় আর শেষেরটা হবে একাকীত্বের নিজস্ব ভাষা এবং দর্শন থাকে তা উপলব্ধি করে জীবনের বাকিটা পথ চলা। আর হে "কোয়ারেন্টাইন"

      তুমি যদি হও পৃথিবীর প্রয়োজনে,মাঝে মাঝে ফিরো মহাজগতের নেক্রপলিসে।




জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ ১৫ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী শাহপরান জানান, বাড়িতে অযথা বসে থাকতে কারোরই ভালো লাগছে না, আমার ও না।তারপর ও নিয়তির পরিহাস যেহেতু যতদিন করোনা পরিস্থিতি ঠিক না হয় ততদিন বাড়িতেই থাকতে হবে। শিক্ষার্থী হিসেবে পড়াশোনা করাটাই আমাদের মুখ্য কাজ। তাই যত প্রতিকূলতা আসুক না কেনো পড়াশোনা তো চালিয়ে যেতে হবে। তাই করছি। তবে গতানুগতিক ক্লাসের পড়া নয়, জ্ঞান বিজ্ঞান, সাহিত্য সংস্কৃতি, সমাজ ব্যবস্থা নিয়ে লিখে যাওয়া বিভিন্ন মনীষীদের বইগুলো পড়ার চেষ্টা করছি। পাশাপাশি স্পিকিং ইংলিশ নিয়ে কাজ করছি যাতে অনর্গল ইংরেজি বলতে পারি। ছোট ভাই, বোনকে পড়াচ্ছি। তাছাড়া আম্মুকে তার কাজে সহযোগিতা করছি। জবি শিক্ষার্থীদের বেশির ভাগকেই মেসে থাকতে হয়, আমি ও তার ব্যাতিক্রম নই। মেসে বুয়া না আসলে প্রায়ই আমাদের রান্না না করতে পারার সমস্যাটা ফেস করতে হয় তাই আম্মুর কাছ থেকে রান্না করা শিখছি টুকটাক। বেশিরভাগ সময় কাটে টেলিভিশন দেখে। বিনোদনমূলক নাটক, সিনেমা দেখছি অনেক। দেশ বিদেশের নানান সংবাদ ও দেখা হচ্ছে।




জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের ১৪তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ফজলে রাব্বি ফরহাদ বলেন, বর্তমানে সমগ্র বিশ্ব  কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে সংক্রমিত হওয়ায় পৃথিবী একরকম স্তব্ধ হয়ে আছে এবং মানুষগুলো হয়ে আছে লকডাউন বা ঘরবন্দী। যদিও অনেক দেশেই এখন স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরতে শুরু করেছে আর সবার প্রত্যাশাও তাই। কিন্তু দূর্ভাগ্যবশত আমাদের বাংলাদেশের পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হয় নি যার জন্য আমাদের আরও কিছুদিন থাকতে হবে এই লকডাউন জীবনে। যার জন্য শিক্ষার্থীদের ছুটিও বৃদ্ধি পাচ্ছে অবিরত। একজন শিক্ষার্থী হিসেবে আমি বলবো আমার এই ছুটির জীবন সম্পর্কে। প্রতিবারের বিশ্ববিদ্যালয় ছুটিতে আনন্দ কাজ করলেও এবারের ছুটি তেমন আনন্দদায়ক না কেননা এখন সবটা সময় কাটে ভয় আর উৎকন্ঠায়। তবুও বাস্তবতা তো মেনে নিতেই হবে। আমার পুরো এই শিক্ষাজীবনের বেশী সময়টা আমার গ্রামেই কেটেছিলো। কিন্তু শিক্ষার তাগিদে যেদিন থেকে বাহিরে ছিলাম তারপর থেকে কখনো এত লম্বা ছুটি নিয়ে পরিবারের সাথে কাটাতে পারি নি। তাই, এই ছুটির সময়টা পরিবারের সাথে বেশ আনন্দের সাথেই উপভোগ করছি। মা-বাবাও অনেকদিন পর এতদিনের জন্য সন্তানকে পেয়ে অনেক খুশি। তবুও আশা করি, পৃথিবী সুস্থ হোক আর সবাই ফিরুক তাদের আপন কর্মে। তাছাড়া, অনেকদিন থেকে পছন্দের কিছু সাহিত্য পড়বো বলেও ঢাকা শহরের ব্যস্ততার কারণে আর পড়া হয়ে উঠে নি। এই ছুটির সময়টাকে বেশ কাজে লাগিয়ে সেই ইচ্ছেটা পূরণ করছি আর আরো অনেকগুলো সাহিত্য পড়ে যাচ্ছি। বাকী যতদিন এই ছুটিটা পাবো এভাবেই কাজে লাগিয়ে দিবো। বই পড়াতে আমার একটানা এত অভ্যাস কখনোই ছিলো না, কিন্তু এই ছুটিটা আমাকে সেই অভ্যাস টা করে দিয়েছে। সবমিলিয়ে সময়টা ভালোই কাটছে। যদিও বড্ড মিস করছি আমার প্রিয় ক্যাম্পাসটাকে আর ক্যাম্পাসের মানুষগুলোকে। কেননা সেই জীবনাটাও এখন আমার জীবনের অবিচ্ছেদ্য একটি অংশ। তবুও বলবো এইরকম পরিস্থিতি কভু কাম্য নয়, সুস্থ হোক এই পৃথিবী। স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফিরুক পৃথিবীর মানুষগুলো। আবারো জমজমাট হয়ে উঠুক আমাদের দিনগুলো।

মোহাম্মদ নাসিম এর মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের শোক প্রকাশ!

মোহাম্মদ নাসিম এর মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয়  সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের শোক প্রকাশ!



দাইয়ানুর রহমান মিষ্টারনুরঃ

বাংলা‌দেশ আওয়ামী লীগের প্রে‌সি‌ডিয়াম সদস্য, সা‌বেক ডাক টে‌লি‌যোগা‌যোগ, গৃহায়ন ও গণপূর্ত, স্বরাষ্ট্র ও স্বাস্থ্য মন্ত্রী,‌ সা‌বেক বি‌রোধী দলীয় চীফ হুইপ, কেন্দ্রীয় ১৪ দ‌লের সমন্বয়ক, জাতীয় নেতা মোহাম্মদ_না‌সিম_এম‌পি 
ঢাকায় চি‌কিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করে‌ছেন।
 ((ইন্না লিল্লাহী ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন))

নাসিম সাহেব অনেক ভালো একজন নেতা ছিলেন তিনি আমাদের সাথে সব সময় যোগাযোগ রাখতেন ভালো পরামর্শ দিতেন তিনি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর উপদেষ্টা ছিলেন
নাসিম সাহেবের মৃত্যু আমরা কিছুতেই মানতে পারছিনা নাসিম সাহেব চলে যাওয়ায় বাংলাদেশ হারালো একজন বর্ষীয়ান  নেতাকে আমরা
তার মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষথেকে গভীরভাবে শোকাহত ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি  তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি আল্লাহ্‌ যেনো মরহুমকে জান্নাত নছিব করেন
 (আমীন)

কুড়িগ্রামে পারিবারিক কলহের জেড়ে এক ব্যক্তির আত্মহত্যা

কুড়িগ্রামে পারিবারিক কলহের জেড়ে এক ব্যক্তির আত্মহত্যা





কৃষ্ণ সরকার, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

উলিপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে রামকৃষ্ণ চন্দ্র (৩৯)নামের এক ব্যক্তি আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, আজ শনিবার(১৩ জুন) সকালে উলিপুর উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের পূর্ব আঠারো পাইকা গ্রামে। নিহত  রামকৃষ্ণ ওই গ্রামের মনোরঞ্জণ চন্দ্র বর্মনের পুত্র। 

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল ৭টার দিকে রামকৃষ্ণ চন্দ্রের সাথে স্ত্রী পূর্ণিমা রাণী ও বাবা মনোরঞ্জণ চন্দ্র বর্মনের পারিবারিক বিষয় নিয়ে কথা কাটা-কাটি হয়।এরই এক পর্যায়ে সবার অগোচরে তিনি শয়ন ঘরের আঁড়ার সাথে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে রামকৃষ্ণর ছেলে ঝুলন্ত অবস্থায় তাকে দেখতে পেয়ে চিৎকার শুরু করলে পরিবারের লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার করে। খবর পেয়ে থানার এস.আই মশিউর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ দাহ করার অনুমতি দেন। 

উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, পারিবারিক ভাবে কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ দাহ করার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

কুড়িগ্রামে দশম শ্রেণির ছাত্রীর আত্মহত্যা

কুড়িগ্রামে দশম শ্রেণির ছাত্রীর আত্মহত্যা





কৃষ্ণ সরকার, কুড়িগ্রামঃ
কুড়িগ্রামের উলিপুরের দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে, শুক্রবার (১২ জুন) সন্ধ্যায় ইসলামপুর গ্রামে। নিহতের স্বজন ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের ব্রহ্মপুত্র নদবেষ্টিত ইসলামপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ মন্ডলের কন্যা নয়ারহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনির শিক্ষার্থী আঞ্জু খাতুন (১৫) শুক্রবার সন্ধ্যায় বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে নিজ শয়ন ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেন। পরে পরিবারের লোকজন বাড়িতে এসে তাকে খুঁজে না পেয়ে শয়ন ঘরের দড়জা বন্ধ দেখতে পান। পরে দড়জা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করলে আঞ্জু খাতুনকে ঘরের আড়ার (ধরনা) সঙ্গে রশিতে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। এ সময় তার মা জোলেখা বেগম ও পরিবারের লোকজনের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে ঘটনা দেখে ওই এলাকার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করেন। স্বজনরা জানায়, নিহত আঞ্জু খাতুন ৯ ভাই বোনের মধ্যে ৮তম ছিলেন। 
এ ব্যাপারে নামাজের চর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (এস আই) তাজরুল ইসলাম সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সংবাদ পাওয়ায় পর রাতে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে রেজাউল করিম চৌধুরীর শোক

সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে রেজাউল করিম চৌধুরীর শোক




রিয়াজুল করিম রিজভী প্রতিনিধি চট্টগ্রামঃ-

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক স্বরাষ্ট্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী, বর্তমান সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ নাসিম’র মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম. রেজাউল করিম চৌধুরী।

এক শোকবার্তায় বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতিতে মোহাম্মদ নাসিমের ভূমিকা অপরিসীম।মোহাম্মদ নাসিম জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহযোগী জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলীর সুযোগ্য সন্তান। রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে রাজনীতি রক্তে মিশে ছিলো মোহাম্মদ নাসিমের। তিনি এক বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ নাসিম বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নে বিভোর ছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম এই নেতা বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। রাজনৈতিক জীবনে তিনি বেশ কয়েকবার কারাবরণ করেছিলেন। আজীবন দেশ ও মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করেছেন। তাঁর মৃত্যুতে দেশ ও জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হলো।দেশ এক বরেণ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে হারালো। জনসেবা ও দেশের উন্নয়নে তাঁর অবদান জাতি চিরজীবন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে। 

শোকবার্তায় তিনি বলেন, আমি মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে মোহাম্মদ নাসিম’র বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং তাঁদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ও সহমর্মিতা জ্ঞাপন করছি। মহান সৃষ্টিকর্তা তাঁকে জান্নাতবাসী করুন।আমিন। 

উল্লেখ্য, তিনি ২০১৪-২০১৮ মেয়াদে বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং  ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে স্বরাষ্ট্র, গৃহায়ন ও গণপূর্ত এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

মহেশপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে স্থানীয় সমস্যা ও সমাধান বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

মহেশপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে স্থানীয় সমস্যা ও সমাধান বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত




খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি। 




ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা পরিষদ হলরুমে করোনা ভাইরাস  কেভি ১৯ প্রতিরোধে স্থানীয় সমস্যা সমাধান বিষয়ক উপলক্ষে এক আলোচলা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
১৩ই জুন সকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব, শ্বাশতী শীল এর সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ ৩আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুল আজম খান চঞ্চল, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মহেশপুর পৌর- মেয়র আব্দুর রশিদ খান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মইজদ্দীন হামিদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর টিএইচও কর্মকর্তা মোছাঃ আঞ্জুমান আরা বেগম, মহেশপুর থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ওসি তদন্ত রাশেদুল ইসলাম, পান্তা পাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইসমাইল হোসেন, প্রেসক্লাব মহেশপুর সভাপতি সরোয়ার হোসেন প্রমুখ।
এসময় মহেশপুর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গন, সাংবাদিক কল্যান সংস্থার সভাপতি আবুল হোসেন লিটন, প্রেসক্লাব মহেশপুরের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, সাংগাঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস আর সোহেল রানা সহ বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি /সম্পাদক, মিশুক সমিতির সভাপতি / সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন।
উক্ত বক্তারা সবাই বলেন করোনা ভাইরাস  থেকে বাঁচতে হলে আমাদের সকলকে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে। এবং সরকারের বেধে আইন মেনে প্রয়োজনীয় যা যা করণীয় সেই দিক নির্দেশা মেনে চলতে হবে।

ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের আমিরুরুল হত্যাকারী শাহিন ওরফে জাম্বুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের আমিরুরুল হত্যাকারী শাহিন ওরফে জাম্বুকে  গ্রেফতার করেছে পুলিশ




খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি। 



তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাতে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের মসজিদ এলাকায় আমিরুল ইসলাম (৪৫) নামের একজনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। নিহত আমিরুল ইসলাম ওই গ্রামে মৃত জবেদ আলী বিশ্বাসের ছেলে। এ ঘটনায় ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার মো: হাসানুজ্জামান পিপিএম এর নির্দ্দেশে অভিযান চালিয়ে পুলিশ দুই ঘন্টার মধ্যে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত একমাত্র আসামী শাহিন ওরফে জাম্বুকে গ্রেফতার করেছে। উদ্ধার করা হয়েছে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত গাছি দা।
কালীগঞ্জ থানার ওসি মাহফুজুর রহমান মিয়া বলেন, ছাগল বিক্রির মাত্র ৩শ’ টাকাকে কেন্দ্র করে আমিরুল ইসলামকে কুপিয়ে হত্যা করে শাহিন ওরফে জাম্বু।

করোনার আপডেট

করোনার আপডেট





নিউজ ডেস্কঃ ১৩ জুন- গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত

২৮৫৬, মৃত্যু ৪৪, সুস্থ ৫৭৮ জন। পরীক্ষা ১৬৬৩৮ টি।
-মোট শনাক্ত ৮৪৩৭৯, মৃত্যু ১১৩৯, সুস্থ ১৭৮২৭ জন।

করোনা মহামারীতে শিক্ষার্থীদের করনীয়

করোনা মহামারীতে শিক্ষার্থীদের করনীয়




মোঃ আওলাদ হোসেন 
বিশেষ প্রতিনিধি, দৌলতখান, ভোলা।

পুরো বিশ্ব যখন করোনা মহামারীতে আতংকে,ঠিক তখন বাংলাদেশে ও এর ব্যাতিক্রম নয়।দিন দিন করোনা মহামারীর প্রকোপ বাড়তেই আছে,এ যেন এক লাগামহীন ঘোড়া। 
বিভিন্ন শহর,গ্রাম আর দেশ যখন করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনে সময় কাটাচ্ছে, তখন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো আরো বেশী ঝুঁকির মধ্যে অবস্থান করছে।
বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা খাতের প্রতি ছিলেন সবসময়ই উদার।দেশে যখন করোনা মহামারী দিন দিন বাড়তে লাগলো, তখনই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সাধারন ছুটি ঘোষনা করলেন। যেন শিক্ষার্থীরা যার যার বাসায় অবস্থান করে এবং সুস্থ থাকে।বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বার বার বলছেন শিক্ষার্থীরা যেন কোথাও বেড়াতে না যায়,বাসায় বসে স্বাস্থ্য বিধি মেনে পড়াশুনা চালিয়ে যায়।
তাই আমি শিক্ষার্থীদের প্রতি অনুরোধ করে বলবো, তোমরা করোনা কালীন ছুটিতে কোথাও যাবে না।একেবারে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাহিরে কোন মতেই অবস্থান করবে না।যদি যেতে হয় তাহলে অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখবে, মাস্ক, হ্যান্ডস্যানিটাইজেন,হ্যান্ড গ্ল্যাবস ব্যবহার করবে।বাসাতেও মাস্ক ব্যবহার করবে। বেশী বেশী করে হাত, পা সাবান দিয়ে ধৌত করবে,অথবা হ্যান্ডস্যানিটাইজেসন ব্যবহার করবে।বাবা,মা, ভাই, বোন ও প্রতিবেশীদের এগুলো ব্যবহারের ব্যাপারে সচেতনতা তৈরী করবে।হাঁচি কাশিতে রুমাল বা টিস্যু ব্যবহার করবে।হালকা সর্দি, কাশি বা জ্বর হলে ডাক্তারের কাছে না যেয়ে স্বাভাবিক ওষুধ খাবে।কোলাহল পূর্ন বা জনসমাগম জায়গা এড়িয়ে চলবে।সবসময় গরম পানি,লেবু,শাকসবজি ও ফলমূল বেশী করে খাবে। তোমাদের পরিবারের বৃদ্ধদের প্রতি বাড়তি যত্ন নিবে।অসুস্থতার মাত্রা বেশী হলে অবশ্যই ডাক্তারের সরনাপন্ন হবে,অথবা জরুরী নম্বরে যোগাযোগ করবে।
সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো তোমাদের পড়াশোনা বিষয়কঃ-
তোমরা এতদিনে নিশ্চয়ই  জেনেছো, বাংলাদেশ সরকার, মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক চৌধুরী এবং মাউশির অন্যান্য কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে "সংসদ টিভি"তে সকল শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ক্লাস নেয়ার ব্যবস্থা করেছেন। 
যতদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ততদিনই টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখবেন। দীর্ঘসময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে বাসায় অবস্থান করেই ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশুনার যাতে ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারে। সে বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই সংসদ টেলিভিশনে রেকর্ড করা ক্লাস সম্প্রচারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতিদিন সাতটি করে প্রতিসপ্তাহে ৩৫টি ক্লাস প্রচার করা হবে। শিক্ষার্থীরা বাসায় বসেই টেলিভিশনে নিজ নিজ বিষয়ের ওপর অভিজ্ঞ শিক্ষকদের দেয়া শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে।মজার বিষয়টি হলো এই ক্লাস থেকে বোর্ড পরীক্ষায় প্রশ্ন কমন পরার সম্ভাবনা রয়েছে অনেক।
ইতোমধ্যে বিভিন্ন বিভাগে বিষয় ভিত্তিক দক্ষ শিক্ষকদের নিয়ে চলছে অনলাইন ভিডিও ক্লাস।থেমে থাকে নাই বরিশাল বিভাগ ও।অন্যান্য বিভাগের মত বরিশাল বিভাগে এই কার্যক্রম অত্যন্ত সুন্দর প্রশংসা কুড়িয়েছে।
তাই বরিশাল বিভাগের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য আরেকটি সুসংবাদ হলো, বরিশাল বিভাগের সবচেয়ে ভালো,দক্ষ ও বাছাই করা শিক্ষকদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে "বরিশাল অনলাইন স্কুল "
এই ক্লাস গুলো যদি তোমরা নিয়মিত শুনো বহুলাংশে তোমরা লাভবান হবে বলে আমি মনে করি।আর করোনা মহামারীতে সাধারণ ছুটি কালীন তোমাদের পাঠদানের ক্ষতি অনেকাংশে পুষিয়ে যাবে।তাই প্রিয় শিক্ষার্থীদের প্রতি আমি আবারও অনুরোধ করছি, তোমরা স্বাস্থ্য বিধিগুলো যথাযথ ভাবে মেনে চলে "সংসদ টেলিভিশন " ও "বরিশাল অনলাইন স্কুল "  নামক অনলাইন ভিডিও ক্লাস গুলো নিয়মিত দেখো,আশা করি ইনশাআল্লাহ  অনেক উপকৃত হবে।

মোঃ আওলাদ হোসেন 
সহকারী  শিক্ষক
ছাকিনা আদর্শ একাডেমি মাধ্যমিক বিদ্যালয়।
দৌলতখান, ভোলা।

বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে গভীর শোকাহত মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি

বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে গভীর শোকাহত মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি




দিনাজপুর প্রতিনিধি॥- জাতীয় চার নেতার অন্যতম ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলীর সুযোগ্য পুত্র, সাবেক সফল মন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।
শনিবার (১৩ জুন) এক শোকবার্তায় এমপি গোপাল বলেন, মোহাম্মদ নাসিম আমৃত্যু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ করে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে গেছেন। সকল ঘাত-প্রতিঘাত উপেক্ষা করে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনা প্রতিষ্ঠায় তিনি অনন্য অবদান রেখেছেন। এছাড়া উত্তরবঙ্গের আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করতে অগ্রণী ভুমিকা পালন করেছেন। ‘মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন দেশপ্রেমিক ও জনমানুষের নেতাকে হারাল। যা সহজে পুরণ হবার নয়। তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান এমপি গোপাল।
উল্লেখ্য, আটদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শনিবার (১৩ জুন) বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর শ্যামলী বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বর্ষীয়ান এ রাজনীতিবিদ।

দিনাজপুরে লাইট হাউস’র উদ্দ্যোগে হিজড়াদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন সিভিল সার্জন

দিনাজপুরে লাইট হাউস’র উদ্দ্যোগে হিজড়াদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন সিভিল সার্জন




দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ১৩ই জুন শনিবার দিনাজপুরে লাইট হাউস ফকিরপাড়াস্থ কার্যালয়ে  করোনা মহামারির প্রভাব মোকাবেলার অংশ হিসেবে আইসিডিডি আর,বি এবং জার্মান ডক্টরস এর আর্থিক সহযোগিতায় দিনাজপুর শহরের ৪৫জন দরিদ্র ও কর্মহীন হিজড়া ও এম.এসডব্লিউদের মাঝে খাদ্যে সামগ্রী বিতরণ করা হয়। 
দরিদ্র্য, অসহায়, কর্মহীন হিজড়া ও এম.এসডাব্লিউদের মাঝে খাদ্যে সামগ্রী  বিতরণ করেন সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুস কুদ্দুছ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন আরা জ্যোৎনা, লাইট হাউসের টিম লিডার  মোঃ সালাহ উদ্দিন, জেলা সমাজ সেবা অফিসার (রেজিঃ) মোছাঃ হাবিবা আক্তার,  অনুঘটক এর নির্বাহী পরিচালক মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম বাবলু, দিনাজপুর লাইট হাউসের ম্যানেজার ঝুনু আক্তার। স্বাগত বক্তব্য রাখতে গিয়ে দিনাজপুর লাইট হাউসের ডিআইসি ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, লাইট হাউস বাংলাদেশের গ্রামীন ও শহরের দরিদ্র্য, প্রান্তিক ও উচ্চ ঝুকিপূর্ণ জনগোষ্ঠির নারী ও পুরুষ  যৌন কর্মী, হিজড়া, সংখ্যালঘু এবং আদিবাসী সহ অনান্য পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কাজ করে আসছে। বর্তমানে সারা বিশ্বের মত বাংলাদেশও  করোণা মহামারি মোকাবেলা করছে। আমরা কর্মহীন হিজড়া ও এম.এডাব্লিউ ৪৫ জনের মাঝে প্রতি জনকে চাল-১২কেজি, আলু-৪কেজি,  মশুর ডাল-২কেজি, সোয়াবিন তেল-২ লিটার, লবণ-২কেজি, পিঁয়াজ-২কেজি, খাদ্য সামগ্রী  বিতরণ করা হয়।

ডিমলায় বীজ ও চারা বিতরণ

ডিমলায় বীজ ও চারা বিতরণ




মোঃ হাবিবুর রহমান শাকিল ডিমলা নীলফামারী:


ডিমলায় প্রনোদনা কর্মসূচী ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে খরিফ-১ মৌসুমে পারিবারিক কৃষির আওতায় সবজি-পুষ্টি বাগান স্থাপনের লক্ষ্যে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ডিমলার বাস্তবায়নে ডিমলা উপজেলার ১০ ইউনিয়নের ৩২০ জন কৃষকদের মাঝে বীজ,চারা ও নগদ অর্থ বিতরণের অংশ হিসেবে অদ্য দুইটি ইউনিয়নে ৬৪ জন কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হয়।

টেকসই ফসল উৎপাদনে গুণগত মানসম্পন্ন বীজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। শুধু গুণগত মানসম্পন্ন বীজই কেবল শতকরা ১৫-২০ ভাগ উৎপাদন বাড়িয়ে দিতে পারে। এটি সবজিসহ অন্যান্য ফসলের ক্ষেত্রে সমভাবে প্রযোজ্য। ফসলের ফলন ও উৎপাদনেরসাথে গুণগত মানসম্পন্ন বীজ নিবিড়ভাবে জড়িত।প্রনোদনায় সার, পরিচর্যা ও বেড়া ঘেড়া বাবদ ১ হাজার ৯ শত পয়ত্রিশ টাকা, লাল শাক ১০০ গ্রাম, পুই শাক ৭.৫ গ্রাম, ডাটা শাক ১০০ গ্রাম,কলমি শাক ৭.৫ গ্রাম, শিম ৭.৫ গ্রাম, বেগুন ১ গ্রাম, মরিচ ১ গ্রাম,চিচিংগা ২.৫ গ্রাম ঝিঙ্গা ২.৫ গ্রাম, মূলা ১০ গ্রাম,করলা ১০ গ্রাম, লাউ বীজ ১০টি, পেপে চারা ৪ টি ও সাইনবোর্ড ১ টি প্রদান করা হয়।

ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সেকেন্দার আলীর উপস্থাপনায় প্রনোদনা বিতরণে উপস্থিত ছিলেন, জয়শ্রী রানী রায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, আনোয়ারুল হক সরকার মিন্টু, সাধারন সম্পাদক, উপজেলা আওয়ামীলীগ, ডিমলা সহ বিশিষ্টজন,সাংবাদিক সহ প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ।

দিনাজপুর শহরে করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রচারণা

দিনাজপুর শহরে করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রচারণা




 দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর সদর উপজেলার  শহরের গুরুত্বপূর্ণ ৯টি মোড়ে  করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মাইকিং সহ বিভিন্নভাবে প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। 
সুইহারী কলেজ মোড়, ফুলবাড়ি বাসস্ট্যান্ড, পুলহাট, বালুয়াডাঙ্গা, রামনগরমোড়, লিলি মোড়, সিএমবি মোড়, মহারাজা মোড়, গনেশতলা,মর্ডান মোড় এই প্রধান ৯ টি মোড়ে প্রশাসনের সাথে কাজ করে ৪০ জন স্কাউট ও রোভার সদস্য সহ বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য বৃদ্ধ। 
 শহরের প্রধান ৯ টি মোড়ের প্রচার কার্যক্রম পরিদর্শন করেন জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির আহবায়ক ও দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম, করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য ও পুলিশ সুপার মোঃ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, পিপিএম (বার)।                                                             
শহরের ৯ টি মোড়ের প্রচার কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন , সাইফুদ্দীন আখতার, কমিশনার, বাংলাদেশ স্কাউটস দিনাজপুর জেলা রোভার, মোঃ জহুরুল হক সম্পাদক,বাংলাদেশ স্কাউটস দিনাজপুর জেলা রোভার,   মোঃ মোজাহার আলী, কোষাধ্যক্ষ,বাংলাদেশ স্কাউটস দিনাজপুর জেলা রোভার,  মাতলুবুল মামুন, কমিশনার, বাংলাদেশ স্কাউটস, দিনাজপুর জেলা, মোঃ আনিসুজ্জামান মিলন, সম্পাদক, বাংলাদেশ স্কাউটস দিনাজপুর জেলা,  মোঃ লোকমান হাকিম, সদস্য, নির্বাহী কমিটি, বাংলাদেশ স্কাউটস, দিনাজপুর অঞ্চল,  মোঃ ইখতিয়ার হোসেন,সদস্য, নির্বাহী কমিটি, বাংলাদেশ স্কাউটস, দিনাজপুর অঞ্চল,  মোঃ মশিউর রহমান, জেলা স্কাউট লিডার, বাংলাদেশ স্কাউটস, দিনাজপুর জেলা,  মোঃ আব্দুর সালাম, অফিস সহকারী, বাংলাদেশ স্কাউটস, দিনাজপুর জেলা,  দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের গণ্যমান্য রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ,সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য বৃদ্ধ প্রমুখ।

একটু বৃষ্টি হলেই নাগরপুর(বটতলা) গয়হাটা রোডে পানি ভর্তি বেহাল অবস্হা

একটু বৃষ্টি হলেই নাগরপুর(বটতলা) গয়হাটা রোডে পানি ভর্তি বেহাল অবস্হা




 হাসান সাদী,নাগরপুর (টাঙ্গাইল)প্রতিনিধিঃনাগরপুর বাজার(বটতলা)গয়হাটা রোডে একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তার এমন বেহাল দশা দেখা যায় রাস্তায় 
সমস্ত পানি জমে থাকে যার কারনে দোকান পাট,ব্যবসা প্রতিষ্ঠান,যানবাহন চলাচল সহ মানুষের চলাফেরাও দুষ্ক্রিয় হয়ে 
পরে। 

আজ শনিবার, ১৩ জুন ২০২০ খ্রি.সকাল ১১.০০ টায় সরেজমিনে গিয়ে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

স্থানীয় অটো চালক মোঃ সাগর মিয়া দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজকে জানান, বৃষ্টি হলেই তাদের কষ্ট করে অটো চালাতে হয়, তখন তারা যাত্রীও কম পায় ফলে  তাদের আয় রোজগার কমে যায়।

স্থানীয় আরেক দোকানদার জয় চন্দ্র দাস বলেন,বৃষ্টি হলে পানি জমে থাকার কারনে তারা দোকান খুলতে পারে না, তাই দোকান বন্ধ রেখে অলস সময় পার করতে হয়।             



 গয়হাটা রোডে নিয়মিত যাতায়াত করা এক স্কুল শিক্ষক বলেন-একটু বৃষ্টি হলেই এখানে পানি ভর্তি হয় ফলে আমাদের যাতায়াত করা সমস্যা হয়। আমি স্হানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধির কাছে আহবান করছি উক্ত পানি ভর্তি রাস্তাটি মেরামত করে দেওয়ার জন্য। যাতে করে এই রকম কষ্ট আর পোহাতে না হয়।

প্লাজমা থেরাপিতে চমক, আগ্রহ বাড়ছে সবার

প্লাজমা থেরাপিতে চমক, আগ্রহ বাড়ছে সবার


 
মোঃ কাওসার আলী    চুয়াডাঙ্গা  জেলা প্রতিনিধিঃ
আমাদের এই দেশে করোনা নিয়ন্ত্রনে আসেনি আর কখন আসবে তা কারও জানা নেই।আমাদের দেশ ও ভারতে প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা।করোনা বা কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় সুনিদ্দির্ষ্ট কোনো ভ্যাকসিন বা ওষুধ না থাকায় প্লাজমা থেরাপি নেয়ার আগ্রহ বেড়েই চলেছে।আসলে দেশের প্লাজমা থেরাপির প্রয়োগ শুরু হয় মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে এবং এতে ডাক্তাররা সফলতা লাভ করছে।
আসুন প্লাজমা সম্পর্কে সঠিক ধারনা গ্রহন করিঃ
প্লাজমা কি এবং কিভাবে কাজ করে?
আসলে রক্তের জলীয় অংশকে বলে প্লাজমা।কোনো ব্যক্তি ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হলে ৫-১৪ দিনের মধ্যে তার শরীরে জীবাণুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ তৈরি হয়।ফলে তার শরীরে একধরণের অ্যান্টিবডি তৈরি হয় এবং সেই অ্যান্টিবডি ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়াকে নিস্ক্রিয় করে ফেলে এবং এর বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়।
কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত থেকে সম্পূর্ণ সূস্থ হয়ে যাওয়া ব্যক্তির রক্তের প্লাজমায় এই অ্যান্টিবডি রয়েছে বা তৈরি হয়।যা সংগ্রহ করে কোভিড-১৯ আক্রন্ত রোগীর শরীরে দিলে সাময়িকভাবে প্যাসিভ ইমিউনিটি তৈরি হয়।এই অ্যান্টিবডি রোগীর শরীরে থাকা করোনা ভাইরাসগুলোকে নিস্ক্রিয় করে ফেলে এবং রোগী আস্তে আস্তে সুস্থ হয়ে ওঠে।কাজেই প্লাজমা থেরাপি খুবই কার্যকরী একটি থেরাপি।এবং অত্যন্ত আনন্দের বিষয় এতে প্লাজমা দানকারীর বিন্দুমাত্র ক্ষতি হয়না।শুধু দরকার হয় একটু সদিচ্ছার।তাই যারা বয়সে যুবক এবং করোনা আক্রান্ত থেকে সুস্থ হয়েছেন তাঁরা দয়া করে এগিয়ে আসুন।
শুধু একবার চিন্তা করুন আপনার শরীরের জলীয়কণার বিনিময়ে বেঁচে যেতে পারে সম্ভাব্য মৃত্যুমুখী একজন যাত্রী।
তাই---
"নিজের প্লাজমা দান করুন
অপরকে সুস্থ করে তুলুন।"

না ফেরার দেশে চলে গেলেন আওয়ামিলীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, মোহাম্মদ নাসিম

না ফেরার দেশে চলে গেলেন আওয়ামিলীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, মোহাম্মদ নাসিম




সম্রাট হোসেনঃ
সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম আর নেই। আটদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শনিবার (১৩ জুন) বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর শ্যামলী বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মোহাম্মদ নাসিমের একান্ত সহকারী সচিব মীর মোশারফ  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।




বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পরিচালক আল ইমরান চৌধুরী জানান, বেলা ১১টা ১০ মিনিটে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মোহাম্মদ নাসিমকে মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন মোহাম্মদ নাসিম।

ঝিনাইদহ জেলায় নতুন করে আরও ১০ জন করোনা আক্রান্ত

ঝিনাইদহ জেলায় নতুন করে আরও ১০ জন করোনা আক্রান্ত




খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি। 



ঝিনাইদহে আজ ৮৪ জনের নমুনার ফলাফল এসেছে,এর ভিতর ১০জনের ফলাফল পজেটিভ। ঝিনাইদাহ সদরে ৭জন,কালিগঞ্জে ২জন,হরিনাকুন্ডুতে ১জন।এ নিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ৮২জন,মোট সুস্থ হয়েছেন ৪৩জন,শনিবার সকালে খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার কে
সিভিল সার্জন ডাঃ সেলিনা বেগম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ডিমলায় বিক্রি হচ্ছে কারেন্ট জাল, নিধন চলছে পোনা মাছের

ডিমলায়  বিক্রি হচ্ছে কারেন্ট জাল, নিধন চলছে পোনা মাছের




মোঃ হাবিবুর রহমান শাকিল ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধি:


নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার হাট-বাজারে আগাম বেচা-কেনা চলছে নিষিদ্ধ কারেন্ট জালের। কোনভাবেই বন্ধ হচ্ছে না এ ব্যবসা।
এ জাল দিয়ে নিধন করা হচ্ছে দেশি প্রজাতির সব ধরনের ও কার্প জাতীয় মাছের পোনা। ফলে উপজেলার বিভিন্ন নদ-নদী সহ তিস্তা চরাঞ্চলে নানান প্রজাতির মাছের বংশ বিপন্নতার মধ্যে পড়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
উপজেলার সদর বাবুরহাট বাজারে সরেজমিনে দেখা গেছে, ৫/৬ জন জাল ব্যবসায়ী অভিনব কায়দায় বিক্রি করছেন কারেন্ট জাল। একজন জাল বিক্রেতা জানালেন, আমি শুধু না দীর্ঘদিন ধরেই এ ব্যবসা করে আসছে সবাই। জাল কি ভাবে বিক্রি করেন ? জবাবে তিনি বলেন, জাল বিক্রি হয় বিভিন্ন হিসেবে যেমন খুচরা-পাইকারী। বর্তমানে এক বান্ডিলের জালের সর্বনিম্ন দাম ১২শ টাকা। জালের মান বুঝে বিক্রি হয় বেশি টাকায়।
একজন ক্রেতা জানালেন, এক বান্ডিল জাল কিনতে লাগছে প্রায় ১৪’শ টাকা। তিনিও বললেন, জালের দাম নির্ভর করে জালের মানের ওপর।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার খোড়ারডাঙ্গা হাট, খগারহাট, টুনিরহাট, শুটিবাড়ীর হাট, চাপানীর হাটেও বিক্রি হচ্ছে এ জাল। বেচা-কেনা থেমে নেই ছোট-বড় আরো অনেক বাজারেও।
এদিকে, আগাম বিষ্টির পানি বেরে যাওয়ায় বিভিন্ন জায়গা জলাশয়ে পরিনত হলে উপজেলার বিলগুলোতে প্রকাশ্য কারেন্ট জাল পাতছেন মাছ শিকারিরা। এতে ধরা পড়ছে দেশি প্রজাতির বিভিন্ন ধরনের মাছ। কার্প জাতীয় মাছের পোনাও ধরা পড়ছে। এ সব মাছের কেনা-বেচা চলছে গ্রামের হাট-বাজারে। বিক্রি হচ্ছে উপজেলা সদরস্থ বাবুরহাট বাজারেও।
ডালিয়া চাপানী এলাকার এক জেলে বলেন, বাদাই জাল দিয়ে মাছ ধরা হয় রাতের শেষ ভাগে। আর কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ ধরা হয় দিনে। কারেন্ট জালে আটকা পড়া মাছ বেশি সময় পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে না। বাজারে তাজা মাছের চাহিদা বেশি।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা শামীমা আক্তারের সাথে কথা হলে তিনি প্রথমে বলেন, এ বছর বিশ্ব মহামারী নোভেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর সংক্রমণ এড়াতে বাজার গুলোতে মনিটরিং করা সম্ভব হয়নি এখনও। তবে এর আগে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার ও বিল থেকে বিপুল পরিমানের কারেন্ট ও বাদাই জাল আটক করে জরিমানা করে আটককৃত সেই জালগুলো পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এবারো খুব তারাতারি কারেন্ট ও বাদাই জাল আটকের অভিযান অব্যাহত থাকবে ।

জ্যামিতিক হারে বাড়ছে করোনা ডিমলা লোকডাউনের ঘোষণা

জ্যামিতিক হারে বাড়ছে করোনা  ডিমলা লোকডাউনের ঘোষণা




মোঃ হাবিবুর রহমান শাকিল ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধি:


নীলফামারীর ডিমলায় করোনা ভাইরাসের পাদুর্ভাব তুলনা মূলক হারে বেড়ে যাওয়ায় ডিমলা উপজেলা সদরের বাবুরহাট বাজার লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে।

বুধবার উপজেলায় সাংবাদিকসহ একদিনে করোনায় আক্রান্ত ১৬ জনসহ মোট আক্রান্ত ৪২জনে দাড়িয়েছে।
আক্রান্ত ব্যক্তিরা বেশিরভাগ ডিমলা উপজেলা সদরের বাবুরহাট বাজারের ব্যবসায়ী।
বৃহঃবার সন্ধা হতে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় বাবুরহাট বাজার লকডাউন ঘোষনা করেন।

শুক্রবার সকালে ওই বাজারের ব্যবসায়ীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লকডাউন প্রত্যারের দাবী জানালে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় লকডাউন ঘোষনার কারণ ও করোনা ভাইরাস সম্পর্কে ঘন্টাব্যাপি সচেতনতা মূলক বক্তব্য পেশ করেন।
উপস্থিত ব্যবসায়ীরা লকডাউন চলা কালীন সময় তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ খারার অঙ্গিকার ব্যক্ত করেন।
এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আগামী (১৪ দিন পর)২৫ জুন লকডাউন তুলে নেয়ার ঘোষনা দেন।

এবং লকডাউন চলাকালীন সময়ে বাবুরহাট বাজারের কোন ব্যবসায়ী যেন দোকান পাট খুলে রেখে লোকসমাগম ঘটিয়ে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করতে না পারেন সে বিষয়ে ব্যবসায়ীসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় বলেন, গত বুধবার ডিমলা সদরের বাবুরহাট বাজারের বেশিরভাগ ব্যবসায়ী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় ডিমলা উপজেলা বাসীর সার্বিক দিক বিবেচনা করে করোনা ভাইরাসের পাদুর্ভাব রোধে বৃহঃবার সন্ধা হতে নিদৃষ্ট সময়ে শুধুমাত্র ওষুধ ও কাচাবাজার বাদে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বাড়ী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ডিমলা উপজেলা সদরের বাবুরহাট বাজার ১১জুন হতে ২৫ জুন পর্যন্ত লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে।

ঝিনাইদহ শৈলকূপা বাসীর চরম দূর্ভোগের নাম ৭'শত মিটার কাঁচা রাস্তা!

ঝিনাইদহ শৈলকূপা বাসীর চরম দূর্ভোগের নাম ৭'শত মিটার কাঁচা রাস্তা!




সম্রাট হোসেন শৈলকুপা উপজেলা  (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃ



ঝিনাইদহে শৈলকূপা উপজেলার  ১৩ নং উমেদপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের লক্ষনদিয়া গ্রামের দুই পাশে পাকা রাস্তা মাঝ খানে ৭০০ মিটার রাস্তার জন্য এলাকা বাসী যাতায়াতের জন্য ব্যাপক দূর্ভোগ পাচ্ছে । সামান্য বৃষ্টি পাত হলে রাস্তায় হেঁটেও চলাচল করা যায় না। বাইসাইকেল নিতে হয় কাধে গ্রামবাসী বলেন স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার  এবং এম পি মহোদয় কে  
 বহু বার জানালেও আজও বধি সমস্যাটির  সমাধান হয়নি।উল্লেখ্য
২০০৯ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য আব্দুল হাই সংসদে রাস্তা-ঘাটের যে অবকাঠামোগত বিল উত্থাপিত করেন তাতে এই রাস্তাটির কথা স্পষ্টভাবে উল্লেখ ছিলো। তবে গ্রাম বাসি বলছে
 এই রাস্তাটি ৭০০ মিটারের মত এখনো কাঁচা অবস্থায় রয়ে গেছে।
মানুষের দুর্ভোগের কথা বলে শেষ নেই। এ গ্রামের মানুষের কাছে এই রাস্তা নিয়ে বরাবরই প্রশ্নবিদ্ধ স্থানীয় সরকার।এই রাস্তা সংস্কারের জন্য উপজেলা প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকা- বাসী।

ঝিনাইদহে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে সংঘর্ষে কুপিয়ে জখম,

ঝিনাইদহে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে  সংঘর্ষে  কুপিয়ে জখম,




 
খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি। 



ঝিনাইদহ সদরের কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নের ধুপাবিলা গ্রামে ১২ই জুন ইং শুক্রবার দুপুরে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে মসজিদের মধ্যেই সাবেক চেয়ারম্যান সামছুল আলম ও বর্তমান আশরাফ চেয়াম্যান গ্রুপের ধাক্কা ধাক্কি ও সংঘর্ষ শুরু হয়। 

সে সময় সাবেক চেয়ারম্যান সামছুল আলমের ভাতিজা ধুপাবিলা গ্রামের মৃত আঃ জলিলের ছেলে ও সফল কাঠ ব্যাবসায়ি জাহাঙ্গির আলম মটর সাইকেল যোগে তার গ্রামের বাড়ি ধুপাবিলায় রওয়ানা হলে রাস্তার মধ্যে একা পেয়ে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টা করে প্রতিপক্ষ বর্তমান আশরাফ চেয়ারম্যান গ্রুপের লোকজন।

এসময় জাহাঙ্গিরের মাথায়, বুকে ও উরুতে রামদা দিয়ে আঘাতের পর আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করার চেষ্টা করে প্রতিপক্ষরা। 

মারা গেছে ভেবে প্রতিপক্ষরা ফেলে যাওয়ার পর স্থানীয়রা জাহাঙ্গিরকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করার পর আশংকাজনক অবস্থায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। অত্যন্ত ব্যস্ত থাকার কারনে এবিষয়ে বক্তব্য দিতে সময় চেয়েছেন ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান খান।

ছুটিপুর বাজারের প্রধান সড়কটি নিজ অর্থায়নে মেরামত করে দিলেন সাবেক চেয়ারম্যান- আমিনুর রহমান

ছুটিপুর বাজারের প্রধান সড়কটি নিজ অর্থায়নে মেরামত করে দিলেন সাবেক চেয়ারম্যান-  আমিনুর রহমান



 
স্টাফ  রিপোর্টারঃ যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার ছুটিপুর বাজারের প্রধান সড়কটিকে নিজ অর্থায়নে মেরামত করে দিলেন সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আমিনুর রহমান। সরেজমিনে জানা যায় ব্যাংদাহ - যশোর /কাশিপুর -যশোর প্রধান সড়কটি দীর্ঘদিন চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ১ নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের বহুল পরিচিত ব্যস্ততম  ছুটিপুর বাজারের জাম তলার মোড় থেকে গঙ্গানন্দপুর হাইস্কুলের মাঠ পর্যন্ত প্রায় ২শত গজ সড়ক টির কার্পেটিং সহ ইট উঠে যাওয়ায় বড় বড় গর্তে পরিণত  হয়েছে। 



যে কারণে বর্ষা মৌসুমে অল্প পানিতে হাটু পর্যন্ত পানি জমে সাধারণ জনগণ থেকে শুরু  করে যানবাহন পর্যন্ত চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এ-ই এলাকার মানুষের যশোর,ঝিকরগাছা সহ দেশের অন্য কোথাও যাওয়ার জন্য বিকল্প  রাস্তা না থাকায়  জীবনের  ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে বাধ্য হতে হয়। 
ফলে বিভিন্ন সময়ে দেখা যায় রাস্তাটির ওপর ভ্যান, করিমন, ইজি বাইক, জেএস সহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় গাড়ি উল্টে  দূর্ঘটনায় পড়ছে। দীর্ঘদিনের অবহেলিত ব্যস্ততম সড়কটি চৌগাছা - ঝিকরগাছা আসনের জাতীয় সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল অবঃ অধ্যাপক ডাক্তার মোঃ নাসির উদ্দীন এর নির্দশনায়        নিজ অর্থায়নে গতকাল (১২ জুন) শুক্রবার  নিজে  উপস্থিত থেকে ইটের টুকরা (খ)বসিয়ে জনগণের চলাচলের উপযোগী করে দিলেন অত্র ইউনিয়নের  সাবেক চেয়ারম্যান , ঝিকরগাছা উপজেলা আওয়ামী সাংস্কৃতি ফোরামের সভাপতি ও অত্র ইউনিয়নের এমপি প্রতিনিধি মোঃ আমিনির রহমান (আমিন)।নিজ অর্থায়নে মেরামত করে দেওয়ায় এলাকার হাজার হাজার মানুষ তার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেছেন এবং ধন্যবাদ  জ্ঞাপন করেছেন।

শিক্ষার্থীদের মেসভাড়া সমস্যা সমাধানে জবি প্রশাসনের কমিটি গঠন

শিক্ষার্থীদের মেসভাড়া সমস্যা সমাধানে জবি প্রশাসনের কমিটি গঠন




জবি প্রতিনিধিঃ 

শিক্ষার্থীদের চলমান মেসভাড়া সংক্রান্ত সমস্যাসমূহ চিহ্নিত করে বিশ্ববিদ্যালয় করণীয় সুপারিশ করার জন্য কমিটি গঠন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রশাসন। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রক্টর ও মনোবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ড. নূর মোহাম্মদকে দায়িত্ব দিয়ে এক সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করা হয়েছে।



শুক্রবার (১২ জুন) রাত সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্টার প্রকৌশলী মো. ওহিদুজ্জামান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজ টাইমলাইনে দেয়া এক অফিস আদেশে এ কথা জানান।



অফিস আদেশে বলা হয়, ড. নূর মোহাম্মদ ভাড়া সংক্রান্ত সমস্যায় ভোগান্তিতে থাকা শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করে তাদের সমস্যা সমাধানে পরামর্শ দিবেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের করণীয় সুপারিশ করবেন।



সুপারিশ কমিটির দায়িত্বে থাকা মনোবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ড. নূর মোহাম্মদ বলেন, যারা মেসে থাকেন এমন শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানে ৪টি ভাগে ভাগ করা হবে। যেমন, সমস্যার দিক থেকে মৃদু সমস্যা, মধ্যম সমস্যা, গুরুতর সমস্যা ও চরম সমস্যা। বাড়িওয়ালাদের ক্ষেত্রেও ৪ ভাগে ভাগ করে কাজ করা হবে।



তিনি আরও বলেন, এ বাসা ভাড়া সমস্যা সমাধানে যারা কাজ করছেন এমন প্রতিনিধি, সাংবাদিক, বিভাগীয় চেয়ারম্যন ও প্রক্টর অফিসের কাজ থেকে তথ্য নিয়েই রিপোর্টটি করা হবে। এছাড়াও তথ্য নিতে প্রতিদিনকার জন্য একটি গুগুলমিট এর মাধ্যমে সবার সাথে আলোচনা করা হবে।



ছাত্র প্রতিনিধিরা কোন প্রস্তাবনা দিতে পারবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “ বাসা ভাড়া সমস্যা সমাধানে যারা কাজ করছেন তারা অব্যশ্যই প্রস্তাবনা দিতে পারবেন।”



বিশ্ববিদ্যালয়ের এরূপ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন জবির ৭ দফা আন্দোলনের সমন্বয়কারী রাইসুল ইসলাম নয়ন। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এরূপ উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই। করোনা সংকটের প্রথম থেকেই আমরা যারা শিক্ষার্থীদের মেসভাড়া সমস্যা নিয়ে কাজ করছিলাম তাদের নিয়ে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ৪ দফা প্রস্তাব রাখা হয়েছিলো। আমরা আশা করি  এই কমিটির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ৪ দফা বাস্তবায়ন হবে এবং মেসভাড়া সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে।



প্রসঙ্গত, এরআগে মেসভাড়া সমস্যার সমাধানের জন্য ৪ দফা প্রস্তাব দেয়া হয় শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এবং ৪ দফা বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দাবি জানিয়ে আসছিলো শিক্ষার্থীরা। ৪ দফার মধ্যে রয়েছে, আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিতে হবে় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে। সরকারের দায়িত্বশীলদের সাথে  সাথে যোগাযোগ করে দ্রুত মেস ভাড়া কমপক্ষে ৫০% মওকুফের ব্যবস্থা নিতে হবে, সেমিস্টার ফি সহ অন্যান্য ফি মওকুফ করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে, ক্যাম্পাস খোলার এক সপ্তাহের মধ্যেই ছাত্রীহল চালু করতে হবে।

মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৫জনের মধ্যে ফয়েজ মিয়া মৃত্যু

মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৫জনের মধ্যে ফয়েজ মিয়া মৃত্যু




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের হবিগঞ্জের মাধবপুর অংশে সকাল ১১টার দিকে কাভার্ড ভ্যান-পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৫ জন আহত।
আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপতালে রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফয়েজ মিয়া (৩০) এর  মৃত্যু হয়। নিহত ফয়েজ মিয়া  সিলেটের সদর উপজেলার মতিউর রহমানের ছেলে।

শুক্রবার (১২ জুন) সকাল ১১ টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে উপজেলার বেলঘর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
পুলিশ সূত্রে জানায়ায়, সিলেট থেকে ছেড়ে আসা একটি কাবার ভ্যান বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পিকাপ এর সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়,ফলে পিকাপ টি ধুমড়ে মুচড়ে যায়, এতে পিকাপে থাকা ড্রাইভার সহ ৫জন গুরুতর আহত হয়,এবং ট্রাকের ড্রাইভার ও হেলপার পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ এর এ.স আই শাহজালাল আহম্মের নেতৃত্বে কনেস্টবল ইমরান ও নুর আইন সহ মাধবপুর থানা পুলিশ,শায়েস্তাগঞ্জ ও ,মাধবপুর ফায়ারসার্ভিস কয়েক ঘন্টা চেস্টা করে তাদের কে আহত অবস্তায় উদ্দার করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে প্ররন করে।

আহতরা হল বি-বাড়ীয়া জেলার সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের আবু সৈয়দ এর ছেলে হান্নান (৪৫) জমির মিয়ার ছেলে জহির (৪০) সিলেট দক্ষিণ সুরমার ময়না মিয়ার ছেলে মিজানুর রহমান( ২৮) ও ফয়েজ মিয়ার ছেলে ইমন মিয়া (২৩) ।

সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক  ফয়েজ মিয়া মৃত্যুর সংবাদটির সত্যতা নিশ্চিত করেন

নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কাছে হোমিও মেডিসিন আর্সেনিকাম এ্যালবাম-৩০ হস্তান্তর

নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কাছে হোমিও মেডিসিন আর্সেনিকাম এ্যালবাম-৩০ হস্তান্তর





 কপোতাক্ষ নিউজ ডেস্ক: মহামারী করোনা ভাইরাস(কোভিড-১৯) প্রতিরোধে নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কাছে বঙ্গবন্ধু হোমিওপ্যাথি বিশ্ববিদ্যালয় (প্রস্তাবিত) পক্ষ থেকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি বা ইমিউনিটি বুস্টার হোমিওপ্যাথিক ঔষধ আর্সেনিকাম এ্যালবাম ৩০ শক্তি হস্তান্তর করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলায় বঙ্গবন্ধু হোমিওপ্যাথি বিশ্ববিদ্যালয় (প্রস্তাবিত) পক্ষ থেকে প্রধান উদ্যোক্তা ডা. শাখাওয়াত ইসলাম ভূঁইয়া আনুষ্ঠানিকভাবে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য উপযোগী Arsenic Alb 30 নামক ঔষধ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং বাংলাদেশ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত কমিটির নরসিংদী জেলা সভাপতি সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন এর নিকট হস্তান্তর করেন। 
 
এসময় উপস্থিত ছিলেন, নরসিংদী জেলা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, অধ্যক্ষ মো: জামাল উদ্দিন, অধ্যাপক মোহাম্মদ হানিফ, মো: শফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া দোলন, এড. কফিল উদ্দিন আকন্দসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ।


বঙ্গবন্ধু হোমিওপ্যাথি বিশ্ববিদ্যালয় (প্রস্তাবিত) এর উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জ্বনাব সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, বঙ্গবন্ধু কণ্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী জ্বনাব শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা এখন এক অদৃশ্য শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করছি। এ লড়াইয়ে সকলকে স্বাস্থ্য সচেতন হতে হবে। সকলের সমন্বিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে করোনা নির্মূল করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সাতক্ষীরার নলতা দূর্নীতিবাজ-দের কবলে,পরিত্রাণ চায় এলাকাবাসী

সাতক্ষীরার নলতা দূর্নীতিবাজ-দের কবলে,পরিত্রাণ চায় এলাকাবাসী






ডেস্ক রিপোর্টঃ

সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ থানার নলতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনিসুজ্জামান খোকন ও ঘোরামী খালেকের  বিরুদ্ধে ত্রানসহ নানা ধরনের দূর্নীতি নিয়ে লংকাকান্ড :

 সম্প্রতি করোনা বিপর্যস্ত মূহুর্তে মানুষ কর্মহীন হয়ে অর্থনৈতিকভাবে খুবই দূর্বল হয়ে পড়েছে।এমনতাবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের বিভিন্ন স্থানে ত্রানসামগ্রী পাঠিয়েছে অসহায় মানুষের সহায়তার জন্য। কিন্তু কিছু দূর্নীতিবাজ নেতাকর্মীদের জন্য আজ এই অসহায় মানুষগুলো মানবেতর জীবন যাপন করছে। 

সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ থানার নলতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনিসুজ্জামান খোকন মেম্বার দীর্ঘদিন যাবত এলাকায় নানা ধরনের অনিয়ম,দূর্নীতি,ত্রান লুটপাট,চোরাকাবারিসহ স্বেচ্ছাচারী অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতিকে সুযোগ হিসেবে ব্যবহার করে স্থানীয় এমপিকে ও আওয়ামী লীগকে না জানিয়ে তিনিসহ তার সকল কুকর্মের  সহযোগী ঘোরামি খালেক কে  নিয়ে এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী হতে শুরু করে বড়সহ সকল ব্যবসায়ীদের নিকট হতে ত্রানের নামে জোরর্পূবক চাঁদা আদায় করে এলাকার জনগনকে সুষম বণ্টন না করে সিংহভাগ অর্থ ও মালামাল আত্মসাৎ করে। স্থানীয় জনগন ও আওয়ামী লীগ নেতার্কমীদের কাছ থেকেও এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।
বিষয়টি এমপি মহোদয় অবগত হলে তিনি সাথে সাথে দুইটি ভিডিও বার্তায় মাধ্যমে প্রশাসনকে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

ঘোরামী খালেক
পাঁচ বছর পূর্বে যে এলাকার মানুষের ঘরের চাল তৈরি (ঘোরামী) কাজ করতো মাত্র পাঁচ বছরে সে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। সরকারী অনুদান সহ বিভিন্ন প্রকল্পে অনিয়ম ও টেন্ডারের দালালী করা এবং অবৈধ ব্যবসায়ী হতে উৎকোচ আদায়, জনগনকে পুলিশি ভয়ভীতি দেখিয়ে অর্থ আদায় সহ একাধিক অপকর্মের সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায়। 

এমন কি স্থানীয় এমপির দেওয়া ত্রান সামগ্রী রাতের অন্ধকারে নির্বাচনী এলাকার বাহিরে পাচারের তথ্য পাওয়া যায়।
স্থানীয় বাসিন্দা এক ভ্যান চালক পরিবারের কাছ থেকে জানতে পারা যায়, করোনায় বাইকে কাজ করতে যেতে না পারায় তারা না খেয়ে দিন পার করছে। এমতাবস্থায় খোকন মেম্বার,  খালেক সহ তার সহযোগীরা এসে দুই বস্তা খাবার হাতে দিয়ে নিজেদের ছবি তুলে পরবর্তীতে সেই খাবার ফিরিয়ে নিয়ে যায়। স্থানীয় আরও একাধিক জন  বলেন, গতবছর রেসন কার্ড দিবে বলে তার ভোটার আই ডি কার্ডের ফটোকপি নিয়েছে। অথচ স্থানীয় এক ডিলারের কাছ থেকে সেই লোক কিছু দিন আগে জানতে পারে, তার রেসন কার্ড হয়েছে অথচ তারা চাউল পায়না। এছাড়া কাপরের ব্যবসার আড়ালে তিনি র্দীঘদিন থেকে চোরাকারবারের সাথে জড়িত। একাজে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী তার সহযোগী হিসেবে কাজ করে।

তার বিরুদ্ধে আরও কয়েকটি মারাত্মক অভিযোগের মধ্যে রয়েছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নিষেয়াজ্ঞা
সত্ত্বেও বিভিন্ন জাতীয় দিবসে তিনি অনুষ্ঠানের নামে চাঁদাবাজি করেন।বিশেষ করে মুজিববর্ষেও তার নিজেস্ব বাহিনী দিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগের পাওয়া গেছে। তথ্য যাচায়ে এধরনের অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। 
উল্লেখ্য যে চাঁদাবাজির নেপথ্যের      পরিকল্পনাকারী হিসাবে ঘোরামী খালেকের নাম প্রকাশ করে স্থানীয় জনৈক আওয়ামীলীগ নেতা।

 আনিসুজ্জামান খোকন মেম্বার, ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর হতে তার রাজনৈতিক উত্থান এবং সে সময় থেকে বর্তমান অবধি পর্যন্ত তার অন্যায়-অত্যাচার,দূর্নীতির চলে আসছে। বিএনপি আমলে তিনি কালিগঞ্জ থানায় বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি ছিলেন। তার ফেসবুক টাইম লাইনে বিএনপি নেতা ও এমপিদের অনেক পোস্ট শেয়ার করতে দেখা যায়।

 সম্প্রতি স্থানীয় টুটুল নামে এক যুবক ফেসবুক লাইভে এসে (৮-০৫-২০২০) তারিখ, আনিসুজ্জামান খোকন ও ঘোরামী খালেকের  বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম, এমপি মহোদয়ের ও আওয়ামী লীগকে বাইপাচ করে  জোরপূর্বক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বড় অংকের টাকা চেয়ে চাঁদা উঠানো , ত্রান আত্মোসাৎ, চিকিৎসার কথা বলে ঘন ঘন ভারত সফরের নামে বিভিন্ন ধরনের চোরাকারবারি, সমাজে বিচার-সালিশের নামে মানুষকে নাজেহাল সহ, প্রশাসন, কোর্ট ও থানায় দালালির মাধ্যমে অসহায় নিরীহ মানুষকে নানা ধরনের হয়রানির তথ্য তুলে ধরে। এরপর হতেই উক্ত দূর্নীতিবাজরা টুটুলকে বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি দেখানো, পুলিশ প্রশাসন নিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়াসহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি- ধামকি দিয়ে যাচ্ছেন।

 এদিকে এমপি মহোদয় করোনা পরিস্থিতি সহ ঢাকাতে নানান ব্যস্ততার কারণে এলাকার বিষয়গুলোতে মনোযোগ দিতে পারছেন না। সমস্ত বিষয়ে খোকন মেম্বারের সাথে একবার ফোনে যোগাযোগ করা গেলেও সে সমস্ত বিষয়ে কথা না বলে ফোন কেটে দেয় এবং পরবর্তীতে অনেকবার ফোনে চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

 বিগত ১০ বছর আগে তার বিরুদ্ধে ব্যাংক ঋন খেলাপির অভিযোগ রয়েছে। অথচ বর্তমানে নলতাতে তার আনুমানিক ১.৫০ কোটি মূল্যের একটি বাড়ি রয়েছে। আর নামে- বেনামে অানুমানিক প্রায় কয়েক কোটি টাকার সম্পদ তার রয়েছে। আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী হিসেবে দলের প্রতিতার তার কোন রকমের ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধ নেই। যারফলে নিবেদিত প্রাণ অন্যান্য আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী উদবিগ্ন হয়ে পরেছেন।

 বর্তমানে এলাকায় নিরীহ মানুষ তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। সাধারণ মানুষ ভয়ে তার বিরুদ্ধে কিছু বলতে পারে না। এলাকার নিরীহ-ভূক্তভোগী জনগণ দূর্নীতিদমন ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ সহ দ্রুত তাদের হাত থেকে পরিত্রান চায়।