রাজগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযুক্ত গ্রেপতার

রাজগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে  কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযুক্ত গ্রেপতার





মোরশেদ আলম 
যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি। 

 যশোরের মণিরামপুরের, রাজগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

 এই ঘটনায় পুলিশ কথিত প্রেমিক রানাকে (২০) গ্রেফতার করেছে,রানা উপজেলার রাজগঞ্জের দীঘিরপাড় গ্রামের মালয়েশিয়ান প্রবাসী রেজাউল ইসলামের ছেলে। 

আর কিশোরী স্থানীয় একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী।
এই ঘটনায় ধর্ষণের শিকার কিশোরীর মা বাদী হয়ে মণিরামপুর থানায় মামলা করেছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খেদাপাড়া ক্যাম্পের আইসি এসআই খাইরুল আলম এজহার সূত্রে জানান, মেয়েটির মা ইটভাটা শ্রমিক, কয়েক বছর আগে তার (বাদীর) স্বামী মারা যান। 

স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে তিনি মেয়েকে নিয়ে দীঘিরপাড়ে স্বামীর ভিটেয় থাকছেন। রানার বাড়ি ওই নারীর বাড়ির পাশে। কিশোরীর মা বাড়ি না থাকার সুযোগে রানা তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে। একপর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রানা একাধিকবার তাকে ধর্ষণ করে। সর্বশেষ গত ১০মে সন্ধ্যায় কিশোরীর মা বাড়ি না থাকার সুযোগে রানা জোর করে ঘরে ঢুকে তাকে ফের ধর্ষণ করে।

এসআই খাইরুল বলেন, বৃহস্পতিবার (৫ জুন) সন্ধ্যায় কিশোরীর মা মামলা করার পর রাতেই বাঁকড়া এলাকার মামার বাড়ি থেকে অভিযুক্ত রানাকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে অভিযোগ রয়েছে, কিশোরীকে ধর্ষণের বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে,ছেলের পিতা টাকাওয়ালা হওয়ায় তারা তাদের পক্ষ নিয়ে একাধিকবার গ্রামে সালিশ বসায়। কিশোরীর মা হতদরিদ্র হওয়ায় সমাজপতিদের ভয়ে থানায় যেতে পারেননি। খবর পেয়ে খেদাপাড়া ক্যাম্পের আইসি খাইরুল আলমও দীঘিরপাড় গিয়ে কিশোরী ও তার পরিবারের সাথে কথা বলে ঘটনার সত্যতা পান। 

অভিযোগের ব্যাপারে এসআই খাইরুল বলেন, আমি ওসি স্যারের নির্দেশে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ঘটনার সত্যতা পেয়ে তখনই স্যারকে বিস্তারিত জানিয়েছি।
মণিরামপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শিকদার মতিয়ার রহমান বলেন, কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগে রানা নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়। শুক্রবার (৬ জুন) দুপুরে তাকে আদালতে হাজির করা হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই কিশোরীকে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ট্রাক চাপায় ৫ বছরের শিশু নিহত

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ট্রাক চাপায় ৫ বছরের শিশু নিহত
 



মিজানুর রহমান ইমন, ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় মগটুলা ইউনিয়নের গালাহার গ্রামের আবুল কালামের ছেলে আবু হানিফ (৫) ট্রাক চাপায় নিহত হয়েছে ।

সূত্রে জানা যায়, (৫জুন) শুক্রবার ৪টার দিকে দাদার বাড়ি যাবার সময় ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের পাশে নিজের বাড়ি থেকে রাস্তা পাড় হতে চেয়েছিল ঐ শিশু কিন্তু নান্দাইল দিক থেকে আসা একটি ট্রাক দ্রুতগামী এসে শিশু আবু হানিফ কে রাস্তায় পিষে চলে যায় । 

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে । ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোঃ মোকলেছুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থলেই শিশুর মৃত্যুর খবর পেয়ে পুলিশ পাঠনো হয়েছে  ।

দৌলতপুরে ছেলের কোন খোঁজ না পেয়ে পিতার সংবাদ সম্মেলন

দৌলতপুরে ছেলের কোন খোঁজ না পেয়ে পিতার সংবাদ সম্মেলন




কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার শিতলাইপাড়া গ্রামের কৃষক আবু আফ্ফান গত ২ দিন যাবৎ ছেলে জামিরুল (৩৫) এর কোন খোঁজ না পেয়ে অবশেষে সংবাদ সম্মেলন করেছে। 

কৃষক আবু আফ্ফান ৫জুন শুক্রবার বিকেল ৫টার সময় আল্লারদর্গা প্রেস ক্লাবে এসে লিখিত বক্তবে জানান গত ৪ জুন বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার সময় শিতলাইপাড়া গ্রামে তার নিজ বাড়ী থেকে র‌্যাব ও পুলিশের পরিচয় দিয়ে তার ছেলেকে ধরে নিয়ে যায়, পরে র‌্যাব ক্যাম্প ও দৌলতপুর থানায় এসে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি র‌্যাব বা পুলিশ আমার ছেলেকে গ্রেফতার করেনি। 

ছেলেকে যখন সাদা পোশাকে ধরে নিয়ে যায় তখন একই এলাকার মিশর পিতা লালন আমার ছেলে জামিরুলকে চিনিয়ে দেয়। আমার ছেলে ২টি খুনি মামলার স্বাক্ষী ছিল এবং আমি একটি মামলার বাদী ছিলাম, আমাদের পরিবারে পরপর ৩টি খুন হয়, যার দৌলতপুর থানা মামলা নং ১০, তারিখ ১৭.১২.২০১৩, মামলা নং ২৩, তারিখ ২১.০২.২০১৫ ও অপর একটি খুন হয় গাংনি থানায়। গত ২৫ জুলাই ২০১৯ ১০নং  মামলার রায় হয়, রায়ে কুষ্টিয়া জেলা জজ আদালত থেকে ৩ আসামীর যাবৎ জীবন কারাদন্ড দেন আদালত। র‌্যাব ও পুলিশ যখন আমার ছেলেকে ধরেনি তাহলে কি আসামীদের চক্র আমার ছেলেকে পরিকল্পিত ভাবে অপহরণ করেছে ? এ সব কথা বলেন আবু আফ্ফান।

কৃষক আবু আফ্ফান জানান এ ব্যাপারে তিনি থানায় একটি জিডি করতে গেলে থানা জিডি গ্রহণ করেনি, ওসি সাহেব ভাল করে খোঁজ করতে বলেছেন। তিনি সংবাদ সম্মেলনে সংবাদ-পত্রের মাধ্যমে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী, স্বরাষ্ট মন্ত্রী ও পুলিশ মহাপরিদর্শকের দৃষ্টি আর্কষণ করে ছেলেকে উদ্ধার সহ ন্যায় বিচার প্রর্থনা করেছেন।

এ ব্যাপারে দৌলতপুর থানার ওসি এস.এম.আরিফুর রহমান জানান এ ব্যাপারে আমি শুনেছি খোঁজ চলছে, জিডির ব্যাপারে তিনি বলেন, যারা এসে ছিল তাদের ভাল করে খোঁজ নিয়ে জেনে পরে আসতে বলেছি।

নাটোরে মাজারের কমিটি নিয়ে আওয়াামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে মারামারি; আটক ৪

নাটোরে মাজারের কমিটি নিয়ে আওয়াামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে মারামারি; আটক ৪




রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের লালপুরে দুড়দুড়িয়া ইউনিয়নে  
মাজারের কমিটি নিয়ে আওয়াামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে  ব্যাপক  মারামারির ঘটনা ঘটে । পরে লালপুর থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন এবং ঘটনাস্থল থেকে উভয় পক্ষের ৪ জনকে আটক করে নিয়ে আসে লালপুর থানা পুলিশ। 

শুক্রবার (৫ জুন) নাটোরের লালপুরে দুড়দুড়িয়া ইউনিয়নে ভেল্লাবাড়ীয়া হযরত শাহ বাগু দেওয়ান (রঃ) মাজার মসজিদে 
আওয়ামীলীগের সাবেক এমপি আবুল কালাম আজাদের দেয়া কমিটি এবং বর্তমান এমপি শহিদুল ইসলাম বকুলের  দেওয়া কমিটির মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করতে উভয়ের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়ে , এক  পর্যায়ে  মারামারিতে রুপ নেই। বকুল এমপির দেওয়া নতুন কমিটি মাজার দখল করে এবং মাজারের খাদেমকে হুমকি ধামকি দিয়ে বিতাড়িত করে। পরে পুরাতন কমিটি এসে লালপুর থানায় খবর দিলে, খবর পেয়ে নতুন কমিটির লোকজনকে বের করে দেয়, পুরাতন কমিটি বহাল রেখে  উভয় পক্ষের ৪জনকে আটক করে পুলিশ থানায় নিয়ে আসে । আটককৃৃৃতরা হলো পুুুরাতন কমিটির রেজাউল  করিম রেজা, নতুন কমিটির মধ্যে রামকৃষ্ণপুর গ্রামের মোঃ খোরশেদ আলীর  দুই ছেলে সুমন আলী, সুজন আলী এবং মৃত মহাসিনের ছেলে  মোঃ ভুট্টু আলী। 

এব্যাপারে লালপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম রেজা জানান , যে প্রতিষ্ঠানের সভাপতি লালপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সেই প্রতিষ্ঠানে মাঝে মধ্যে এমন মারামারির ঘটনা মানুষ সমাজে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে । তবে বিষয়টি এবার শক্ত ভাবে দেখতে চাইছি। তিনি আরো বলেন যারা আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে চাই এবং যাদের ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের কোন ভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না ।

এব্যাপারে লালপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মুল বানীন দ্যুতি জানান কমিটির বিষয়ে আমরা সবাই বসার আগেই আমার অজান্তে এমন  অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে । তিনি আরো বলেন, যারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে তাদের বিরুদ্ধে লালপুর থানা পুলিশ কি ধরনের  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন সেটা তাদের ব্যাপার ।

প্রধানমন্ত্রীর উপহার ইমামের জন্য কাল!

প্রধানমন্ত্রীর উপহার ইমামের জন্য কাল!

 


স্টাফ রিপোর্টারঃ   

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য প্রণোদনা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর এই টাকায় যেন কাল হলো মসজিদের ইমাম সাহেবের। হতে হলো চাকুরিচ্যুত। ঘটনাটি ঘটেছে মাগুরা সদর উপজেলার শত্রুজিৎপুর ইউনিয়নের সিংহ ডাঙ্গা গ্রামের উত্তরপাড়া জামে মসজিদের ইমাম মৌলভী মোহাম্মদ আবু সাঈদ মোল্যার ক্ষেত্রে। ৩০ মে শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষিত ইমামদের জন্য প্রণোদনার চেক বিতরণ করেন  মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর। টাকাটি মসজিদ কমিটির সভাপতি ইমাম সাহেবকে না জানিয়ে উক্ত মসজিদের মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের শিক্ষক মোঃ একরাম হোসেনকে দিয়ে তুলে নেন। আর এই টাকা চাইতে গিয়ে চাকরিচ্যুত হন ইমাম সাহেব। ঘটনাটি ঘটিয়েছেন শত্রুজিৎপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মসজিদ কমিটির সভাপতি  মীর খোরশেদ আলম।

উক্ত মসজিদের ইমাম মৌলভী মোহাম্মদ আবু সাঈদ মোল্যা জানান, তিনি দীর্ঘ ১৫ মাস ওই মসজিদে ইমামতি করছেন। ২০১৯ সালের ১ মার্চ ওই মজজিদের ইমামতির চাকুরি পান। তিনি বলেন আমাকে না জানিয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত প্রণোদনার টাকা মোঃ একরাম হোসেন নামের এক ব্যক্তি কে দিয়ে তুলে নেন। সেই টাকা চাইতে গেলে আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করে এই মাসের বেতন দিয়ে ৩১ তারিখ রোববার যোহর বাদ আমাকে চাকরিচ্যুত করেন।

এ বিষয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি মীর খোরশেদ আলম জানান,  আমাদের মসজিদের অবস্থা ভাল না হওয়ায় আমি চেয়ে ছিলাম ওই টাকা দিয়ে মসজিদের উন্নয়ন কাজে ব্যায় করব। এছাড়া ওই ইমামকে ঈদের আগেই ছুটি দিতে চেয়েছিলাম। বিভিন্ন কারণে দেয়া হয়নি। এখন তাকে বাদ দিয়ে আমরা নতুন ইমাম নিয়েছি।

এদিকে টাকা উত্তোলন কারি উক্ত মসজিদের মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষা কার্যক্রমের বাংলার শিক্ষক মো. একরাম হোসেন জানান, আমি মসজিদ কমিটির সভাপতি কথা মত টাকাটি তুলে এনে তাকে দিয়েছি। এখানে আমার কোনো দোষ নেই।

জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, উক্ত মসজিদের সভাপতির প্রতিনিধির হাতে আমরা টাকাটা তুলে দিয়েছি এবং তাকে বলে দিয়েছি টাকাটা যেন উক্ত মসজিদ এর ইমাম ও মুযাজ্জিনকে দেয়া হয়। কিন্তু তিনি যদি টাকাটা আত্মসাৎ করে থাকেন তা হলে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ইমাম সাহেবের চাকুরি চুতির বিষয়টি  মসজিদ কমিটির ব্যাপার। এখানে আমাদের কিছু করার নেই।

শত্রুজিৎপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জহুরুল ইসলাম জানান, আমি বিষয়টি শুনেছি, খোরসেদেও বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের জন্য প্রণোদনা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার অংশ হিসাবে জেলার ১৮৭৬ টি মসজিদের ঈমাম ও মোয়াজ্জিনদের ৯৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা দেয়ার ঘোষণা দেন। সেখান থেকে ৩০শে মে শনিবার জেলার শেখ কামাল ইনডোর স্টেডিয়ামে সদর উপজেলার ৭৪৭টি মসজিদের ঈমাম ও মোয়াজ্জিনদের হাতে ৫ হাজার টাকার চেক তুলে দেন মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর।

সামান্য ১০০ মিটার রাস্তার জন্য শৈলকুপা উপজেলার বেড়বাড়ি গ্রাম যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

সামান্য ১০০ মিটার রাস্তার জন্য শৈলকুপা উপজেলার বেড়বাড়ি গ্রাম যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন




সম্রাট হোসেন শৈলকুপা উপজেলা (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলা বেড়বাড়ি গ্রাম এক পাশে সামান্য ১০০ মিটার রাস্তার জন্য পাশের গ্রাম চাঁদপুর, বেড়বাড়ি ও ফুলহরী গ্রামের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সামান্য ৫/১০ মিনিট বৃষ্টি হলে ১০০ মিটার কাঁচা রাস্তায় কাদা আর পানির খেলা শুরু হয়ে যায়। তখন গ্রাম বাসি বাজার করতে বা উপজেলা আর জেলা শহরের সাথে কোন ভাবেই যোগাযোগ করতে পারেনা। তখন গ্রাম বাসি বন্দী হয়ে গ্রামেই থাকতে হয়। এই অবস্থাতে তারা জনপ্রতিনিধি দের সাথে যোগাযোগ করেও কোন উপকার পাইনি।

জবি শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিমার আওতায় চান শিক্ষক-ছাত্রনেতারা

জবি শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিমার আওতায় চান শিক্ষক-ছাত্রনেতারা
জবি প্রতিনিধিঃ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সকল শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিমার আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালেয়র শিক্ষক নেতৃনৃন্দ ও ক্রিয়াশীল ছাত্রসংগঠনগুলোর নেতারা। সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির সভায় শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিমার আওতায় আনার সিদ্ধান্তের পর জবি শিক্ষার্থীদেরও স্বাস্থ্যবিমায় আনার পক্ষে কথা বলেছেন শিক্ষক ও ছাত্র প্রতিনিধিরা।

শিক্ষক ও ছাত্র প্রতিনিধিদের মতে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন ব্যবস্থা না থাকায় ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চলে মেসবাড়িতে থাকতে হয় শিক্ষার্থীদের। একেতো মেসভাড়ার অতিরিক্ত খরচ ফলে মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত সম্ভব হয় না।তাছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়েও নেই কোনো চিকিৎসার সুযোগ। বিশ্ববিদ্যলয়ে যে নামমাত্র মেডিকেল সেন্টার আছে সেখানে শুধু প্রাথমিক চিকিৎসা মেলে। সবমিলিয়ে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ন্যূনতম প্রিমিয়ামে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা মিললে শিক্ষার্থীদের চিকিৎসাসেবা সমস্যা সমাধান হবে।

ছাত্র নেতারা বলছেন, যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারটি অপ্রতুল, সে বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিমা জরুরী। তবে স্বাস্থ্যবিমার ব্যয়ভার অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয়কে ব্যবস্থা করতে হবে।

জবির ৭দফা আন্দোলনের সংগঠক তৌসিব মাহামুদ সোহান বলেন, আমাদের বাসাভাড়া দিতেই বড় খরচ হয়ে যায়। ডাক্তার ফি, ডায়গনস্টিক সেবা, ওষুধ খরচ, চাইলে সব রোগের চিকিৎসা সব শিক্ষার্থী করাতে পারে না। স্বাস্থ্য বিমা নিশ্চিত করা গেলে শিক্ষার্থীদের চিকিৎসাসেবার চাহিদাটা পূরণ হবে। তবে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিমার ব্যয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বহন করবে।

ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি কে.এম মুত্তাকী বলেন, স্বাস্থ্যবিমার ব্যয়টা বিশ্ববিদ্যালয় ব্যয় করবে না শিক্ষার্থীদের ব্যয় করতে হবে। যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার অপ্রতুল সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়কে ব্যয়টা বহন করতে হবে।

ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি, রাইসুল ইসলাম নয়ন বলেন, ঢাবি, জাবি বা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারগুলোর সাথে তুলনা করলে বোঝা যায় জবির মেডিকেল সেন্টার কতটা অপ্রতুল আর শিক্ষার্থীরা স্বাস্থ্যসেবা থেকে কতটা বঞ্চিত হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিমাটা শিক্ষার্থীদের জন্য জরুরী কেননা শিক্ষার্থীরা যেকোনে রোগের চিকিৎসা সহজে পাবে।

জবির মেডিকেল সেন্টারের অপ্রতুল অবস্থা স্বীকার করে স্বাস্থ্যবিমা প্রয়োজন মনে করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. মিতা শবনম। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিমা হলে শিক্ষার্থীদের ভালো হয়। আমাদের মেডিকেল সেন্টার অপ্রতুল, একটা রুম-একটা বেড এভাবেতো হয় না। স্বাস্থ্যবিমা হলে শিক্ষার্থীর অন্যান্য হাসপাতালগুলোতে যেকোনো রোগেরই সহজে চিকিৎসা পাবে। তাছাড়া ডায়াগনস্টিক যে সেবাটা ওটাও তারা সহজে নিতে পারবে।

শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিমার ক্ষেত্রে আগ্রহ প্রকাশ করছেন শিক্ষক নেতারাও। তারা বলছেন, সার্বিক বিবেচনায় শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিমার আওতায় আনা দরকার।

নীলদলের একাংশের সভাপতি অধ্যাপক ড.জাকারিয়া মিয়া বলেন, বাংলাদেশের অন্য যেকোন বিশ্ববিদ্যালয়ের আগেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থবিমা জরুরী। আমাদের মেডিকেল সেন্টারকে প্রকৃতপক্ষে মেডিকেল সেন্টার বলা যায় না। আমাদের শিক্ষার্থীদের আবাসনের যে ব্যবস্থা, যাতায়াতের ব্যবস্থা বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিমাটা হওয়া দরকার।

নীলদলের অপর অংশের সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী সাইফুদ্দিন বলেন, অন্য সময় সিদ্ধান্ত গ্রহণে জবি পিছিয়ে থাকে, কারণ আমরা নতুন। বিমার একটা সিস্টেম আছে, তবে সেটা অসম্ভব না। তবে স্বাস্থ্যবিমার বিষয়টা নিয়ে আমরা কথা বলবো। শুধু শিক্ষার্থীদের নয় সবারই এটা দরকার।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নূর আলম আব্দুল্লাহ বলেন, স্বাস্থ্যবিমা থাকলে শিক্ষার্থীদের জন্য খুব ভালো হয়। শিক্ষার্থীদের জন্য উপকার হবে। আমাদের আবাসন আছে বা নেই সেটা বিষয় না, স্বাস্থ্যবিমাটা দরকার।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, এটা দেশ স্বাভাবিক অবস্থায় আসলে আমরা দেখবো। স্বাস্থ্যবিমা যখন করা হবে, হয় শিক্ষার্থীদের টাকা দিবে না হলে সরকার থেকে টাকা পেতে হবে। তবে বেশকিছু বিমা কোম্পানি আমাদের সাথে যোগাযোগ করছিলো, আমরা সবকিছু বিবেচনা করে একটা ব্যবস্থা নিবো।
 
 

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর -বৃক্ষরোপণ

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর -বৃক্ষরোপণ




সাব্বির হোসেন,  তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

আজ ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ২৭তম অধিবেশনে বিশ্বের জনসাধারণকে পরিবেশ সংরক্ষণ সম্পর্কে সচেতন করার উদ্দেশ্যে প্রতিবছর ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। উক্ত সিদ্ধান্ত অনুসারে অন্যান্য দেশের সাথে বাংলাদেশেও যথাযোগ্য মর্যাদায় ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত হয়ে আসছে।
একইসাথে মুজিব শতবর্ষে “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান” স্মরণে আজ তেতুলিয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে একযোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করে।
উক্ত বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উপস্থিত ছিলেন তেঁতুলিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ এর সাধারন সম্পাদক কাজী মাসফিকুর রহমান সাকিব, তেতুলিয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর সাধারণ সম্পাদক  রকি, ও তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর ওয়ার্ডের সভাপতি-সম্পাদকগন

তেতুলিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ  এর সাধারণ সম্পাদক  কাজী মাসফিকুর রহমান সাকিব জানান যে ,তেতুলিয়া সদর ইউনিয়ন  ছাত্রলীগ এর এই ধরণের মহতী কর্মসূচি আবারো প্রমাণ করলো, এই দেশের স্বাধীনতা অর্জনে আমরা যেমন তাজা প্রাণ বিসর্জন দিতে ভয় পাইনা, তেমনি পরিবেশ রক্ষাই আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।
তেতুলিয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর সাধারণ সম্পাদক রকি জানান যে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর
নির্দেশনা অনুযায়ী  বিশ্ব পরিবেশ দিবসে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী সম্পূর্ণ করেছি,দূষণমুক্ত পরিবেশ সকল নাগরিকের প্রতাশ্যা। তাই এই বাংলাদেশকে দূষণমুক্ত  করা ও পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষার মত মহৎ  দায়িত্ব কাঁধে নিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ,
 সকল নেতাকর্মীরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ যেমনি ভাবে তাঁরা ১৯৭১ বিজয় ছিনিয়ে এনেছে তেমনি ভাবে পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষায় ও সফল হবে এবং মুজিবের সোনার বাংলা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়বো।

একশো’তে পৌঁছালো সিরাজগঞ্জে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা

একশো’তে পৌঁছালো সিরাজগঞ্জে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা




মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জে ভয়াবহ হারে বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। এপ্রিল ও মে দুই মাসে ৪৩ জন আক্রান্ত হলেও চলতি জুন মাসের চারদিনেই সেটা একশো’র ঘরে পৌঁছে গেছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯ জন এবং গত চারদিনেই আক্রান্ত হয়েছেন ৫৭ জন। 
শুক্রবার (০৫ জুন) বিকেলে সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, ২৪ ঘন্টায় শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে ৯৪ জনের নমুনা রিপোর্ট এসেছে। এর মধ্যে ৬ জনের নমুনায় করোনা পজিটিভ বাকী ৮৮ জনের নেগেটিভ এসেছে। অপরদিকে গত রাতে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ থেকে আরও ৩ জনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ১০০ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে ২৮ জন পুলিশ ছাড়াও দুজন চিকিৎসক ও কয়েকজন স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন। 
তিনি বলেন, আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৩৫ জন সদর উপজেলায়, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেলকুচিতে ২২ জন। এছাড়া চৌহালী ১৫, কাজিপুরে ৬, তাড়াশ, রায়গঞ্জ ও শাহজাদপুরে ৫ জন করে, উল্লাপাড়ায় ৪ ও কামারখন্দে ৩ জন। 
প্রসঙ্গত, গত ১৯ এপ্রিল জেলায় প্রথম এক বৃদ্ধের শরীরে করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়। মাঝখানে বিরতির পর পর দু-একজন করে আক্রান্ত হলেও জুন মাসের প্রথম থেকেই ব্যাপকহারে বাড়তে থাকে। ২ জুন থেকে মাত্র চারদিনে ৫৭ জন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ১১ জন সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরেছেন। মারা গেছেন দুজন। মৃত দুজনেই বেলকুচি উপজেলার বাসিন্দা।

সিরাজগঞ্জ রতনকান্দিতে মোহাম্মাদ নাসিমের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও কোরান খতম

সিরাজগঞ্জ রতনকান্দিতে মোহাম্মাদ নাসিমের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও কোরান খতম



 মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ চৌদ্দ দলের সমন্বয়ক, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রি ও বাংলাদেশ আ.লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের রোগমুক্তি কামনায় রতনকান্দি  ইউনিয়নে মহিষামুড়া চৌরাস্থা বাজার জামে মসজিদে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ও আয়োজনে বিশেষ দোয়া ও কোরান খতমের আয়োজন করা হয়।  শুক্রবার বাদ আছর মহিষামুড়া জামে মসজিদেএই দোয়া ও কোরান খতমের আয়োজন করেন।
 এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলাপরিষদের সদস্য মোঃগোলাম রব্বানী তালুকদার, ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন,ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্ত সভাপতি ছাইদুল ইসলাম জুরান,সাংগঠনিক আলীহোসেন,রফিকুল ইসলাম মাষ্টার, সহ সকল অংগ সংগঠনের নেএী বৃন্ধ।

মাধবপুরে আড়াই কেজি গাঁজাসহ বিজিবির হাতে আটক ৩জন

মাধবপুরে আড়াই কেজি গাঁজাসহ বিজিবির হাতে আটক ৩জন



লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার 
ধর্মঘর বাজার এলাকা থেকে আড়াই কেজি গাঁজা ৩ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)
আটককৃতরা হল চাঁদপুর জেলার

 ফরিদগঞ্জ উপজেলার চাঁদপুর চরবাগড় গ্রামের আনোয়ার হোসেন এর ছেলে শাওন হোসেন(১৯),ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার গংগোধবাসা বাড়ী গ্রামের কালাম ফকিরের ছেলে সোহেল

 ফকির (২৩) এবং ঢাকার কেরানীগঞ্জের
 জিনজিরা এলাকার মমিন হোসেনের ছেলে আকাশ হোসেন (২১)
বিজিবি হবিগঞ্জ ৫৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল সামীউন্নবী

 চৌধুরী জানান,শুক্রবার সকালে ধর্মঘর
 বিওপির হাবিলদার মহসিন হোসেন এর
 নেতৃত্বে বিজিবির টহলদল ধর্মঘর বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে উল্লেখিত ৩ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক

 করে এবং তাদের নিকট থাকা ব্যাগ
 তল্লাশী করে ২ কেজি ৫শ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করে। আটককৃতদের বিরোদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে
ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম চলছে।

মাধবপুরে করোনায় পরিস্থিতি ঘরোয়া আয়োজনে, নো থ্যাংকস সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

মাধবপুরে করোনায় পরিস্থিতি ঘরোয়া আয়োজনে, নো থ্যাংকস সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত


,

লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুরে নো থ্যাংকস সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী বর্তমান বিশ্ব ও শেশীয় করোনার বিরূপ পরিস্থিতির মধ্যে ঘরোয়া আয়োজনে অনাড়ম্বর ভাবে পালিত হচ্ছে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নো 

থ্যাংকস সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক অলক রায়  উপদেষ্টা টিটু সরকার নান্টু রায় অজয় রায় আরও উপস্থিত ছিলেন নো থ্যাংকস সামাজিক সংগঠনের সভাপতি নয়ন রায় সাধারণ সম্পাদক পায়েল চৌধুরী এবং  উপস্থিত 

ছিলেন সাংবাদিক লিটন পাঠান ও নো থ্যাকসের সলক সদস্যরা এবং অনুষ্ঠান শেষে আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে নো থ্যাকস সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে মরজিদ ও মন্দিরসহ ও আসে পাশের এলাকায় বৃক্ষ 

রোপন কর্মসূচী পালিত হয়েছে এ সময় নো থ্যাকস সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক অলক রায়, বলেন
কোভিড-১৯ এর তান্ডবে সারাবিশ্বের মানুষ যখন বিপর্যস্ত তখন প্রকৃতিতে ফিরেছে প্রাণ গত তিন চার মাস ধরে 

পৃথিবীর মানুষ এক প্রকার ঘরবন্দি প্রকৃতির ওপর চালানোর অবিচার কমে আসায় প্রকৃতি যেন নিজেকে মেলে ধরেছে ফিরেছে স্বমহিমায় এই বাস্তবতা থেকে নতুন করে লিখতে শুরু করেছে মানুষ তবে সেই শিক্ষা করোনার পরও 

থাকবে কিনা এখন সেটিই দেখার বিষয়। এবং অনুষ্ঠান শেষে সকল সমস্যদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়

চৌগাছায় এক ব্যক্তির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার!

চৌগাছায় এক ব্যক্তির  বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার!





নিউজ ডেস্কঃ   যশোরের চৌগাছা থানা পুলিশ বিপুল হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে। আজ শুক্রবার সকালে উপজেলার বেড়গোবিন্দপুর বাওড় সংলগ্ন মুলিখালী নামক স্থানের বটতলা থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত বিপুল হোসেন বড় কাকুড়িয়া গ্রামের মৃতঃ সামসুল হকের ছেলে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
থানার অফিসার ইনচার্জ রিফাত খান রাজীব জানান, আজ শুক্রবার ভোরে থানা পুলিশ জানতে পারে বস্তাবন্দি অবস্থায় মুলিখালী নামক স্থানের বটতলায় একটি লাশ পড়ে আছে। বস্তা থেকে মৃত ব্যক্তির দেহ কিছুটা পচে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে। খবর পেয়ে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় এবং হত্যাকান্ডের বিষয়ে ইতোমধ্যে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। 

এদিকে নিহত বিপুল হোসেনের পরিবারের লোকজন জানিয়েছেন, গত বুধবার বেলা ১২ টার দিকে বিপুল হোসেন গরু কেনার জন্য চৌগাছা পশু হাটের উদ্দেশ্যে রওনা হন। এ সময় তার সাথে ছিলো চৌগাছা মাঠ পাড়ার লালনের ছেলে গরু ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম। কিন্তু এদিকে রাত পর্যন্ত বিপুল বাড়ীতে না আসায় পরিবারের লোকজন চিন্তিত হয়ে পড়েন। তারা বিভিন্ন স্থানে খোঁজখবর নিয়েও তার হদিস মেলেনি। পরের দিন বৃহস্পতিবার পরিবারের লোকজন বিপুলের নিখোঁজের বিষয়ে সংশ্লিষ্ঠ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। নিহত বিপুল হোসেনের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় পরিবার ও এলাকায় শোকের ছায়া বিরাজ করছে।

বিশ্ব পবি‌বেশ দিব‌সে জ‌বি‌তে ভার্চুয়াল সে‌মিনার

বিশ্ব পবি‌বেশ দিব‌সে জ‌বি‌তে ভার্চুয়াল সে‌মিনার





জ‌বি প্র‌তি‌নিধিঃ
বিশ্ব‌ প‌রি‌বেশ দিবস উপল‌ক্ষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের আয়োজনে 'কোভিড-১৯: পরবর্তী পৃ‌থিবীর প‌রি‌বেশ ও উন্নয়ন নি‌য়ে অনলাইন সে‌মিনা‌রের আয়োজন করা হয়ে‌ছে।

শুক্রবার (৫ জুন) রাত ৯টায় সে‌মিনার‌টি শুরু হবে যা ফেসবুক লাইফ সম্প্রচার করা হ‌বে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। 


কি নোট বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখবেন জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের অধ্যাপক ড. দারা শামসু‌দ্দিন। আলোচনা কর‌বেন ইউএনডিপি বাংলাদেশের সহকারী প্রতিনিধি মোঃ খুরশীদ আলম, বাংলাদেশ জিওগ্রাফিক্যাল সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপিকা ড. হাফিজা খাতুন। এছাড়াও  ডি‌স্টিংগুইসড বক্তব্য রাখ‌বেন দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. অঞ্জন সেন।


বিভাগীয় চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে সঞ্চলনায় থাক‌বেন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ আব্দুল কাদের।


প্রফেসর ড. মনিরুজ্জামান জানান, কোভিড-১৯ এর তান্ডবে বিপর্যস্ত বিশ্বে আজ পালিত হচ্ছে বিশ্ব পরিবেশ দিবস। চলতি বছরের বিশ্ব পরিবেশ দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে 'টাইম ফর ন্যাচার'। অথ্যাৎ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের এখনই সময়। পৃথিবীর প্রতি যে নির্বিচার হচ্ছে, বন জঙ্গল কাটা হচ্ছে তার ফলে আমরা হয়তো সীমিত সময়ের জন্য লাভবান হচ্ছি তবে দীর্ঘমেয়াদে আমরা বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি। সমসাময়িক করোনা ডিজিস্টারও পরিবেশের প্রতি অন্যায়ের ফলস্বরূপ পাচ্ছি আমরা। যার ফলে আমরা আজ লকডাউন অবস্থায় রয়েছি। বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে জবির ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের পক্ষ থেকে সেমিনারের আয়োজন করেছি। যেখানে মূলত করোনা পরবর্তী সময়ে আমাদের করণীয় সম্পর্কে দিক নির্দেশনা থাকবে। আমরা প্রতিবার ডিপার্টমেন্ট থেকে এদিনটি‌কে ঘি‌রে বিভিন্ন প্রোগ্রাম করে থাকলেও ভার্চুয়ালি এবারই প্রথম প্রোগ্রাম করতে যাচ্ছি যেখানে দেশের এবং দেশের বাইরের স্বনামধন্য আলোচকও রয়েছেন।

উল্লেখ্য যে, ১৯৭৪ সাল থেকে জাতিসংঘের মানবিক পরিবেশ সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জাতিসংঘের পরিবেশ কর্মসূচির (ইউএনইপি) উদ্যোগে প্রতিবছর ৫ জুন ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়। 


সেমিনারটি সরাসরি দেখতে ভিজিট করুনঃ www.facebook.com/md.moniruzzaman.5245 এবং www.facebook.com/mohammad.a.quder.5

নওগাঁয় অবাধে চলছে ডিমওয়ালা মা মাছ শিকার' কর্তৃপক্ষের নজর নেই

নওগাঁয় অবাধে চলছে ডিমওয়ালা মা মাছ শিকার' কর্তৃপক্ষের নজর নেই




মোঃ ফিরোজ হোসাইন  
রাজশাহী ব্যুরো

 দেশের বৃহত্তম ও মৎস্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত আত্রাই। এখন এসেছে বর্ষার নতুন পানি। পানি আসার সাথে সাথে মা মাছ ধরতে নেমে পড়েছেন জেলেরা। নিষিদ্ধ বিভিন্ন জাল দিয়ে মাছ শিকার করছে তারা। তবে এই ডিমওয়ালা মা মাছ নিধন বন্ধে স্থানীয় প্রশাসন কার্যকরী প্রদক্ষেপ না নিলে আগামী দিনে আত্রাইয়ে মাছ উৎপাদনে বড় ধরনের সংকট দেখা দিতে পারে বলে ধারনা বিশেষজ্ঞদের।

আত্রাই ৮টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত বৃহৎ বিলাঞ্চল এ উপজেলা। এখন চলছে অবৈধ নানা উপায়ে মা মাছ শিকার। আর এক শ্রেণীর অসাধু জেলেরা নদী ও বিলের বিভিন্ন পয়েন্টে বাদাই ও কারেন্ট জালসহ মাছ ধরার বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে দিনে ও রাতে মা মাছ শিকার করে হাট-বাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি করলেও দেখার কেউ নেই। গত এক সপ্তাহে আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন নদী ও খাল বিলে বন্যার পানি আসায় বিভিন্ন হাট বাজার, মৎস্য আড়তে দেখা গেছে ডিমে পেট ভরপুর টেংরা, পাতাসী, পুটি, মলা, বোয়াল, শোল, মাগুড়সহ বিভিন্ন দেশীয় প্রজাতির ডিমওয়ালা মা মাছ প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে।
স্থানীয় মৎস্য অফিস সূত্র জানায়, সাধারণত জুন-জুলাই মাসে ডিম ছাড়ে মা মাছগুলো। বর্ষা শুরু হলেই মাছগুলো ডিম ফুটাতে থাকে। কিন্তু এই সময়টাতে মাছ ধরা একেবারেই নিষিদ্ধ। ১৯৫০ সালের মৎস্য আইন অনুযাযী ডিম এবং মা মাছগুলো শিকার আইনগত ভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু নদী নালা খাল বিলে পানি আসার সাথে সাথে মাছ শিকারে নেমে পড়েন জেলেরা। এতে করে জেলেদের জালে ধরা পড়ে নষ্ট হচ্ছে ডিমগুলো।

আত্রাইয়ের বিভিন্ন মৎস্য আড়ত ও হাট বাজার গুলোতে প্রতি কেজি টেংরা ৬’শ টাকা, পাতাসী ৮’শ টাকা, মলা ৫’শ টাকা, বোয়াল ৬’শ টাকা, শিং মাছ ৬’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
উপজেলার মৎস্য অভয়াশ্রম দহ-সহ আত্রাই নদী এবং বিলের বিভিন্ন পয়েন্টে বাদাই, কারেন্ট, খোরা জালসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে ডিমে ভরপুর টেংরা, পাতাসী, পুঁটি, মলা, বোয়াল, শিংসহ দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতির মা মাছ প্রকাশ্যে নিধন করছেন একশ্রেণির অসাধু জেলে।

আত্রাই উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার বলেন, নদী নালা খাল বিলে নতুন পানি আসার কারণে কিছু অসাধু জেলেরা মা মাছগুলো শিকার করছে। আমরা জরুরী ভাবে আইনি ব্যবস্থা নিবো।

ফুলবাড়ী সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আত্মপ্রকাশ সভাপতি প্রবীর দাস, সা. সম্পাদক খালিদ হোসেন নির্বাচিত

ফুলবাড়ী সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আত্মপ্রকাশ সভাপতি প্রবীর দাস, সা. সম্পাদক খালিদ হোসেন নির্বাচিত




দিনাজপুর প্রতিনিধি :বাঙালি সংস্কৃতি ধারণসহ মুক্তিযোদ্ধের চেতনা বিকাশে শুক্রবার সকাল ১০ টায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ফুলবাড়ী সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট নামের একটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে।
স্থানীয় ননী গোপাল মোড় এলাকায় উপজেলার বিভিন্ন স্তরের সাস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের উপস্থিতিতে এক সভা প্রবীণ কন্ঠ শিল্পী ও সুরবাণী সঙ্গীত বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ প্রবীর দাস বাবু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
এতে বক্তব্য রাখেন প্রবীণ কন্ঠ শিল্পী স্থানীয় জিএম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক গোবিন্দ সরকার, কন্ঠ শিল্পী আঁখি সরকার, উপজেলা শিল্পকলা একাডেরি সঙ্গীত শিক্ষক বেতার ও টিভি শিল্পী খালিদ হোসেন বকুল, ফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রভাষক অমর চাঁদ গুপ্ত অপু, সিনিয়র সহ-সভাপতি হারুন উর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুল ইসলমা ডিফেন্স, সাংগঠনিক সম্পাদক ফিজারুল ইসলাম ভূট্টু, তবলা শিক্ষক ও প্যাডড্রামার পলাশ দাস বাপ্পী প্রমুখ। সভায় সর্বস্মতিক্রমে প্রবীর দাস বাবু’কে সভাপতি এবং খালিদ হোসেন বকুলকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে ১৪ সদস্য বিশিষ্ট ফুলবাড়ী সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ত্রি-বার্ষিক কার্যকরী নির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়।
কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা হলেন, সভাপতি সুরবানী সংগীত বিদ্যালয়ের সংগীত শিক্ষক প্রবীর দাস বাবু, সহ-সভাপতি প্রবীণ শিক্ষক গোবিন্দ চন্দ্র সরকার, সাধারণ সম্পাদক উপজেলা শিল্পকলা একাডেমি সংগীত শিক্ষক বেতার ও টেলিভিশন কণ্ঠশিল্পী খালিদ হোসেন বকুল, সহ-সাধারণ সম্পাদক বেতার ও টেলিভিশন শিল্পী আঁখি রানী সরকার, সহ-সাধারণ সম্পাদক ক্রিয়া শিক্ষক হারুন উর রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক তবলা শিক্ষক ও প্যাডড্রামার পলাশ দাস বাপ্পী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কণ্ঠশিল্পী আজান আলী, কোষাধ্যক্ষ নৃত্যশিল্পী মহাদেব রায়, সহ-কোষাধ্যক্ষ কণ্ঠশিল্পী সুমন সরকার, দপ্তর সম্পাদক প্যাডড্রামার সাংবাদিক প্লাবন শুভ, সহ-দপ্তর সম্পাদক প্যাডড্রামার আরমান আলী, প্রচার সম্পাদক কীবোর্ডিস্ট প্রণয় সাহা, সহ-প্রচার সম্পাদক দুলাল হোসেন, প্রকাশনা সম্পাদক কণ্ঠশিল্পী সাংবাদিক মোশাররফ হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য উপস্থাপক সাংবাদিক আশরাফ পারভেজ, কন্ঠশিল্পী লিটন সরকার ও গিটারিস্ট হাসিব আখলাক স্বপন।
এছাড়াও একই সভায় ৮ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সদস্যরা হলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান বাবুল, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মঞ্জু রায় চৌধুরী, ফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রভাষক অমর চাঁদ গুপ্ত অপু, দৈনিক দেশ মা প্রকাশক রাজু কুমার গুপ্ত, দিনাজপুরের নাট্য ব্যক্তিত্ব ও উপস্থাপক প্রভাষক হারুন-উর-রশিদ, ফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি হারুন উর রশিদ, দিনাজপুরের গিটার শিক্ষক কণ্ঠশিল্পী শুভায়ু দাস শ্যামল ও বাবুল হোসেন।
সভার শুরুতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার ব্যক্তিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করা হয় এবং আক্রান্তদের রোগমুক্তি কামনা করা হয়। 
শেষে সম্মিলিত কণ্ঠে দেশাত্ববোধক গানের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে ফুলবাড়ী সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আত্মপ্রকাশ করা হয়। 

দিনাজপুরে ঐতিহাসিক কান্তজীউ মন্দিরে স্না্নযাত্রা উৎসবে এমপি গোপাল ঈশ্বর আমাদের করোনা প্রাদুর্ভাব হতে দ্রুত রক্ষা করবেন

দিনাজপুরে ঐতিহাসিক কান্তজীউ মন্দিরে স্না্নযাত্রা উৎসবে এমপি গোপাল ঈশ্বর আমাদের করোনা প্রাদুর্ভাব  হতে দ্রুত রক্ষা করবেন




দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥- ঐতিহাসিক শ্রীশ্রী কান্তজীউ মন্দিরে শতশত বছর ধরে হয়ে আসা শ্রীশ্রী কান্তজীউ’র যুগল বিগ্রহের স্নান যাত্রা উৎসব যথাযথ মর্যাদা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে। মন্দির অঙ্গনে  স্না্নযাত্রা উপলক্ষ্যে প্রতিবছর বিপুল সংখ্যক ভক্তবৃন্দের সমাগম ও মেলা অনুষ্ঠিত হলেও এবছর প্রানঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে ভক্ত-পুণ্যার্থী জমায়েত ও মেলার আয়োজন করা হয়নি। ভক্তবৃন্দের সুরক্ষায় শ্রী শ্রী কান্তজীউ যুগল বিগ্রহ এর স্নান যাত্রা উৎসব স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক ও শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে শুধুমাত্র ধর্মীয় নিয়ম নিষ্ঠা রক্ষার্থেই সীমিত আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয়। 
৫ জুন ২০২০ শুক্রবার দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় ঐতিহাসিক শ্রীশ্রী কান্তজীউ মন্দিরে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বৈদিক মন্ত্র উচ্চারনের মধ্য দিয়ে  স্না্নযাত্রা উৎসব চলে। এসময় উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল ও তার সহধর্মীনি গীতা রাণী শীল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরুল হাসান, ওসি মনোজ কুমার, দৈনিক আজকের দেশবার্তা’র সম্পাদক  চিত্ত ঘোষসহ সীমিত ভক্তবৃন্দ উপস্থিত থেকে  স্না্নযাত্রা উপভোগ করেন।
মন্দিরের পুরোহিত পুলিন চক্রবর্তী জানান, বাংলা জ্যৈষ্ঠ্য মাসের পুর্ণিমা তিথিতে শ্রীশ্রী কান্তজীউ যুগল বিগ্রহের  স্না্নযাত্রা উৎসব পালন করা হয়ে থাকে। এসময় সাত ঘাট হতে সংগ্রহ করা জল শুদ্ধিকরণ করে ১০৮ টি মাটির কলসে করে সেই পূণ্য জল দিয়ে যুগল বিগ্রহকে স্না্ন করানো হয়। পাশাপাশি বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসী  করোনা সংক্রমন হতে মুক্তি পাওয়ার লক্ষ্যে দেবতার কাছে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।
এসময় উপস্থিত মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি বলেন, বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রাণঘাতী সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় এ বছর স্নানযাত্রা উৎসবের আয়োজন সীমিত করা হয়েছে। এবার মন্দিরে আসা ভক্তবৃদের প্রার্থনা ছিল যাতে খুব দ্রুত যাতে বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসী এই প্রাণঘাতী করোনার প্রাদুর্ভাব হতে মুক্তিলাভ করে। ঈশ্বর আমাদের করোনা প্রাদুর্ভাব হতে দ্রুত রক্ষা করবেন। 
এবছর সন্মানিত ভক্তগন বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হচ্ছে যে বর্তমান অবস্থা প্রেক্ষিতে মহামারি করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) চলাকালীন সময়ে ঐতিহাসিক শ্রী শ্রী কান্তজীউ মন্দিরে কমিটির পুর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কক্তদের দেয়া কোন ভোগ গ্রহন করা হয়নি। এছাড়া স্নান যাত্রা উৎসব আয়োজন সংকোচিত হওয়ায় কমিটি বিশেষ ভাবে দুঃখ প্রকাশ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনায় কৃষকসমাজকে ধান মাড়াইয়ের মেশিন প্রদান করা হচ্ছে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল

প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনায় কৃষকসমাজকে ধান  মাড়াইয়ের মেশিন প্রদান করা হচ্ছে                               -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল




দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেছেন, কৃষকদের উন্নয়নে সব সময় পাশে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বে বর্তমান সরকার বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের মৌলিক চাহিদা পুরণে বদ্ধপরিকর। করোনাভাইরাসের কারণে উৎপাদন যাতে ব্যাহত না হয় সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কৃষি খাতে ৫ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা দিয়েছেন। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় কৃষকসমাজকে ধান মাড়াইয়ের মেশিন প্রদান করা হচ্ছে। কাহারোল উপজেলায় কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে কৃষি মন্ত্রনালয়ের পরিচালন বাজেটের আওতায় কৃষি যন্ত্রপাতিতে উন্নয়ন সহায়তা প্রদান কার্যক্রমের মাধ্যমে কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরণকালে এমপি গোপাল এসব কথা বলেন। এসময় উপজেলায় মো. শরিফুল ইসলামকে কম্বাইন হার্ভেস্টার মেশিনের চাবি হস্তান্তর করেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন কাহারোল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরুল হাসান, কাহারোল থানার ওসি মনোজ কুমার, কাহারোল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবীদ আবু জাফর মো. সাদেক। এর আগে কাহারোল উপজেলা পরিষদ চত্বরে প্রাণী সম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ইউনিয়ন পর্যায়ে লাইভস্টক সার্ভিস প্রোভাইডারদের মাঝে বাই সাইকেল বিতরণ করেন এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল।

গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনায় আক্রান্ত ২৮২৮ এবং মৃত্যু ৩০ জনের

গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনায় আক্রান্ত ২৮২৮ এবং মৃত্যু ৩০ জনের
নিউজ ডেস্ক:
গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনাভাইরাসে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৮২৮ জন। এখন পর্যন্ত সর্বমোট আক্রান্ত হয়েছেন ৬০ হাজার ৩৯১ জন।
আর গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩০ জন। এখন পর্যন্ত সর্বমোট মারা গেছেন ৮১১ জন।

আজ শুক্রবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান।


তিনি আরো জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে আরও ১৪ হাজার ৬৪৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। মোট ৫০টি ল্যাবে পরীক্ষা করা হয় ১৪ হাজার ৮৮টি নমুনা। দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো তিন লাখ ৭২ হাজার ৩৮৮টি।

এদিকে সারা বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন  ৬৬ লাখ ৩২ হাজার ৯৮৫ জন। আর এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৩ লাখ ৯১ হাজার ১৩৬ জন।

গ্রামে প্রবেশের একমাত্র রাস্তা 'পলক সড়ক' পাকাকরণের দাবি গ্রামবাসির

গ্রামে প্রবেশের একমাত্র রাস্তা 'পলক সড়ক' পাকাকরণের দাবি গ্রামবাসির



রাজু আহমেদ, সিংড়া: 
চলনবিলের প্রত্যন্ত একটি 
গ্রাম ঠেঙ্গাপাকুরিয়া। একসময় অবহেলিত  চলনবিলে উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। কিন্তু ছোঁয়া লাগেনি ঠেঙ্গাপাকুরিয়া গ্রামে। একসময় পায়ে হেটে যাবার রাস্তা ছিলো না। বর্তমানে পায়ে হেটে যাবার রাস্তা আছে। কিন্তুু একটু বৃষ্টি হলে কোনো যানবাহন যায় না। পায়ে হেটে যাওয়াই দুস্কর। 

নাটোরের সিংড়া-বারুহাস রাস্তার বিয়াশ বাজার থেকে একটু অদুরে  ঠেঙ্গাপাকুড়ীয়া গ্রামে যাবার সড়ক। গ্রামবাসী ভালোবেসে গ্রামে যাতায়াতের রাস্তার নাম করণ করে
পলক সড়ক। 

জমি কেটে নির্মিত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী আলহাজ এড জুনাইদ আহমেদ পলক নামের ১ কিঃ মিঃ রাস্তাটির এখন বেহালদশা।

চলাচলের একেবারেই অনুপযোগী এই রাস্তা পাকাকরনের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ঠেঙ্গাপাকুড়ীয়া সহ ওই এলাকার সাধারণ মানুষ। 

গ্রামবাসীরা জানান,২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে গ্রামবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমে প্রথমে রাস্তা নির্মানের কাজ শুরু করা হয়। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এম এম আবুল কালামের সহযোগিতায় প্রতিমন্ত্রীর অনুদানে রাস্তার কাজ সম্পন্ন করা হয়।

 ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ঠেঙ্গাপাকুড়ীয়া গ্রামে যান প্রতিমন্ত্রী পলক। এসময় গ্রামবাসীর দাবির মুখে নির্বাচন পরবর্তী ১ বছরের মধ্যেই রাস্তা পাকাকরনের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। প্রতিমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি পেয়ে অবহেলিত গ্রামবাসী খুশি হয়ে রাস্তার নামকরন করেন পলক রাস্তা। পলক রাস্তা নামে নাম ফলক তৈরী করে ঝুলিয়ে দেন রাস্তার দুই প্রান্তে। 

এলাকাবাসী জানান, র্দীঘ ৩ বছর পরেও রাস্তা পাকাকরন না হওয়ায় এখন যাতায়াতের চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। বর্ষায় একটু বৃষ্টি হলেই কাদায় ভ্যান গাড়ীতো দুরের কথা পায়ে হেটে চলচল করাও কঠিন হয়ে পড়ে। সরেজমিনে গিয়ে রাস্তার বেহালদশা চোখে পড়ে। রাস্তার দুপাশের মাটি ভেঙ্গে জমিতে পড়ে গেছে। কোন কোন জায়গায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি হলেই এই গর্তে পানি জমে থাকে যা পায়ে হাটার পথেও পথচারীদের ভোগান্তিতে  পড়তে হয়। গ্রামবাসীর কয়েকজনের সাথে কথা বললে তারা রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরনের দাবি জানান।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপির পিও রাকিবুল ইসলাম জানান, ইতোমধ্য মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মহোদয় সংশ্লিষ্টদের দ্রুত রাস্তা পাকাকরণের জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন।  আশা করি এলাকাবাসির সুবিধার্তে রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরণের কাজ হবে।

ঠেঙ্গাপাকুড়ীয়া গ্রামের মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, একসময়  বাস্তার অভাবে আমরা অন্ধকারে ছিলাম। খরা মৌসুমে আমরা জমির আইল দিয়ে বিয়াশ ও বারুহাস বাজারে যাতায়্ত করতাম। বর্ষা মৌসুমে কখনো নৌকা আবার অনেক সময় নৌকার অভাবে গামছা ব্যবহার করে সিংড়া-বারুহাস রাস্তায় উঠতাম। আমরা গ্রামবাসী চাঁদা তুলে ও স্বেচ্ছাশ্রমে আজ থেকে ৩ বছর আগে রাস্তা নির্মান করি। প্রতিমন্ত্রী আমাদের প্রতিশ্রতি দিয়েছেন রাস্তা পাকাকরণ করবেন। এখন আমাদের দাবি তিনি যেন রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরন করেন। 

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ আকবর হোসেন বলেন,চলনবিলের প্রত্যন্ত এই অঞ্চলে প্রায় সব গ্রামেই কমবেশি পাকা রাস্তা আছে। এই ১ কিঃ রাস্তা পাকাকরন হলে শুধু ঠেঙ্গাপাকুড়ীয়া নয় পাশের কয়েক গ্রামের সাধারণ মানুষ যোগাযোগ সুবিধা পাবেন।


করোনাকালে হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি’র প্রতিটি পদক্ষেপ মানুষের কল্যাণের জন্য

করোনাকালে হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি’র প্রতিটি পদক্ষেপ মানুষের কল্যাণের জন্য



দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ  কোভিড-১৯ একটি সংক্রামক রোগ। এই রোগ করোনাভাইরাস সংক্রমণ দিয়ে হয়। এটি ২০২০ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয়। চীনের উহান প্রদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে অনুষ্ঠিত একটি সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত করেন। মার্চের ৮ তারিখে প্রথম করোনাভাইরাসের রোগী শনাক্ত হওয়ার পর মূলত গত তিন মাস ধরে করোনাভাইরাসের মহামারি ঠেকাতে লড়ছে বাংলাদেশ। ছোঁয়াচে এই রোগের বিস্তাররোধের জন্য চলেছে সাধারণ ছুটি। সবাইকে বলা হয়েছে ঘরে থাকতে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের সূচনা দিন অর্থাৎ ১৭ মার্চ থেকে সর্বস্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ঘোষিত হওয়ার পর, ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি শুরু হয় এবং ৩০ শে মে পর্যন্ত ছুটি বহাল ছিল।
করোনা সংকট শুরু হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন বিভাগের জেলা প্রশাসক, চিকিৎসক, পুলিশ, সেনাবাহিনীর প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে ব্রিফিং ও নির্দেশনামূলক বক্তব্য দিয়েছেন । তাই গত তিন মাস ধরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সকলে কাজ করে যাচ্ছেন। এ করোনাকালে করোনা আক্রান্তদের সহায়তায় বিভিন্ন এলাকার সাংসদেরা তাদের নিজস্ব এলাকার মানুষের সহায়তায় কাজ করে যাচ্ছেন। জনপ্রতিনিধিগণ জনগণের কল্যাণে তাদের সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন সেই করোনাকালের শুরু থেকে। এটা তাদের দায়িত্ববোধের বহিঃপ্রকাশ। এ ক্ষেত্রে আমাদের দিনাজপুর-৩ আসনের এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম তার সক্রিয় ভূমিকা শুরু থেকেই পালন করে চলেছেন। তিনি শুরু থেকেই করোনাকালের বেশিরভাগ সময় দিনাজপুরে অতিবাহিত করছেন, জনগণের পাশে থাকছেন। তিনি সাধারণ ছুটি উপেক্ষা করে এলাকায় ছিলেন, মানবিকতার হাত বাড়িয়ে কাজ করে চলেছেন। তিনি এই দূর্যোগে সুখে-দুঃখে মানুষের পাশে আছেন,তাদের সহায়তা করছেন,তাদের মনোবল বাড়িয়ে চলেছেন।
তিনি সব সময় করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩১ দফা নির্দেশনা অনুযায়ী দলীয় নেতাকর্মীদের কোথায় কী করতে হবে, কী ঘটছে-যাবতীয় বিষয়ে সার্বিক দিকনির্দেশনা দেন। তিনি সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণের জন্য কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন; যার মধ্যে রয়েছে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা, সব সরকারি ও বেসরকারি অফিস, বাজার (খুব প্রয়োজনীয় বিষয় ছাড়া) ৪১ দিনের জন্য বন্ধ করে দেয়া এবং এমনকি পবিত্র রমজান মাসেও সব ধরনের সমাবেশ নিষিদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রশাসনকে সহায়তা প্রদানের জন্য ২৪ ঘণ্টা কাজ করেছেন। এ পরিস্থিতিতে যাতে কোনো মানুষই মৃত্যুবরণ না করে, আর যাতে মানুষ আক্রান্ত না হয়, সেই লক্ষ্য নিয়েই সবাইকে নিয়ে কাজ করে চলেছেন। এটি হচ্ছে অত্যন্ত সংক্রামক একটা ব্যাধি। তিনি প্রতিনিয়ত জেলা প্রশাসক, চিকিৎসক, পুলিশ, সেনাবাহিনীর প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় করেছেন ও  নির্দেশনা দিয়েছেন । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে পৃথক ভিডিও কনফারেন্সে রংপুর বিভাগের (৪ মে) জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন। সেই কনফারেন্সে দিনাজপুর জেলার জনপ্রতিনিধি হিসাবে মাননীয় এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এবং অন্যান্য প্রতিনিধিরা উপস্হিত ছিলেন। মহামারির এই সময়ে তিনি কেবল পরামর্শ ও নির্দেশনা নয় বাস্তবায়নযোগ্য অনেককিছু করেছেন। তিনিও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী এই মহামারি পরিস্থিতিতে কৃষিখাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছেন। এ কারণে তিনি কৃষি উৎপাদন বাড়াতে জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় প্রশাসন, কৃষি বিভাগের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন এবং পরামর্শ ও নির্দেশনা দিয়েছেন ।
তিনি সমাজের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যেমন: কৃষিশ্রমিক, দিনমজুর, রিকশা/ভ্যানচালক, পরিবহন শ্রমিক, ভিক্ষুক, প্রতিবন্ধী, পথশিশু, স্বামী পরিত্যক্তা/বিধবা নারী এবং হিজড়া সম্প্রদায়ের প্রতি বিশেষ নজর রাখাসহ ত্রাণ সহায়তা প্রদান নিশ্চিত করেছেন। ত্রাণ সামগ্রী তালিকা অনুযায়ী বিতরণ করা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার জন্য তিনি ইউপি চেয়ারম্যানদেরকে বিতরণ করেন। এছাড়া শুরু থেকে তার ব্যক্তিগত পদক্ষেপে ত্রাণ সামগ্রী স্থানীয় জনগণের মাঝে বিতরণ করে চলেছেন। তিনি সবসময় স্বাস্থ্যবিষয়ক সচেতনতা ও সামাজিক দূরত্ব মেনে ত্রাণ বিতরণ করেন। তিনি একটি প্রতিবন্ধী পরিবারকে বেশ আগে সেলাই মেশিন ও হুইল চেয়ার উপহার দিয়েছিলেন। এই লকডাউনে সেই পরিবার বিপদে তাকে ফোন করলে তিনি বেঁচে থাকার জন্য যা যা দরকার তা এই পরিবারকে উপহার পাঠিয়েছেন।
কোভিড-১৯ বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে মারাত্মক হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা অসীম সাহসিকতার সাথে এ দূর্যোগ মোকাবিলা করছে। তাই এ পরিস্থিতিতে করোনাকালের শুরুতেই তিনি এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, দিনাজপুর ও দিনাজপুর সদর হাসপাতাল পরিদর্শন করে তার করনীয় ঠিক করেছেন, আইসোলেশন কর্ণার খুলেছেন, আইসিইউ সুবিধা বাড়ানোর ব্যবস্থা করেছেন। দ্রুততম সময়ের মধ্যে মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে আরটি-পিসিআর ল্যাবের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন এবং সেখানে প্রতিদিন প্রায় ২০০ রোগীর করোনা সনাক্তকরণ পরীক্ষা করানো যায়। এ এক সময় উপযোগী পদক্ষেপ যা দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় এবং নীলফামারী জেলার জনগণের জন্য একটা আর্শীবাদ হয়ে এসেছে। তিনি সবসময় হাসপাতাল পরিদর্শন করেন ও চিকিৎসাধীন রোগীদের খোঁজখবর রাখেন। প্রাণঘাতী ভাইরাস প্রতিরোধে তাঁর  বিভিন্ন পদক্ষেপে এখন করোনা পরীক্ষা, আইসোলেশনে এবং কোয়ারেন্টাইনে রাখার ক্ষেত্রে ফলপ্রসূ হয়েছে। এই দূর্যোগ মোকাবিলায় একটি টেকনিক্যাল কমিটির অধীনে ডাব্লিউএইচওর নির্দেশিকা অনুসারে প্রতিনিয়ত করোনা পরিস্থিতি আপডেট করা হচ্ছে। অনলাইনে দিনাজপুর জেলার প্রতিদিনের করোনা আপডেট পাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। তিনি হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য স্বাস্থ্যসুরক্ষার সরঞ্জামসমূহের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন যেমন-মাস্ক, হ্যান্ড সেনিটাইজার, গ্লাভস ইত্যাদি সরঞ্জামসমূহ। তিনি কর্তব্যরত চিকিৎসকদের জন্য পিপিই, কঘ৯৫ মাস্ক বিতরণ করেছেন। তার নির্দেশে জীবাণুনাশক স্প্রে দিয়ে হাসপাতাল ও শহরের বিভিন্ন জায়গা জীবাণুমুক্তকরণ করা হয়েছে। করোনা রোগীদের জন্য টেলিমেডিসিন সেবা চালুর ব্যবস্থা করেছেন। পুরো রমজান মাসে সকল ইন্টার্নদের জন্য ইফতার ও সেহরী তাদের রুমে পৌছে দেয়ার ব্যবস্থা করেছেন। আইসোলেশনে থাকা চিকিৎসকদের জন্য পর্যটন মোটেলে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। ঈদের আগে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের জন্য ঈদ উপহার হিসাবে মেয়েদের জন্য শাড়ী আর ছেলেদের জন্য পাঞ্জাবী পাঠিয়েছেন। তিনি এই দূর্যোগের সময়ে চিকিৎসকদের উৎসাহ দিয়ে তাদের সাহস জুগিয়েছেন ও অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। তিনি একজন চিকিৎসকবান্ধব জনপ্রতিনিধি। 
এ করোনাকালে তিনি মানবিকতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। জনগণের কাজ তিনি আন্তরিকতার সাথে পালন করে চলেছেন। তিনি স্থানীয় জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা, ইউনিয়ন পর্যায়ের সকলকে সাথে নিয়ে এ দূর্যোগ মোকাবিলায় জনগণের পাশে থেকে একনিষ্ঠভাবে কাজ করে চলেছেন। তার প্রতিটি পদক্ষেপ মানুষের কল্যাণের জন্য। তিনি স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করেছেন এবং দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তিনি জনগণের কাছে তার দায়বদ্ধতার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন এবং সদিচ্ছা থাকলে  কিভাবে যথাযথভাবে  যেকোনো বিপদকে মোকাবিলা করা যায় তার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। সংকট মোকাবিলার জন্য প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে মতামতও নিয়েছেন; লকডাউনের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষগুলো যেন খাবার সংকটে না পড়ে সে জন্য তাদের পাশে দাঁড়াতে দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার উপহার সামগ্রী জনগণের মাঝে সঠিকভাবে বিতরণ করতে সফল হয়েছেন। তিনি সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানসমূহ জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে সমন্বয় করে ত্রাণ ও স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছেন।
মানবসেবা একটি ইবাদত। হুইপ ইকবালুর রহিম  মানুষকে ভালবাসেন, তিনি নিজের জীবনের পরোয়া কখনও করেননি, করোনাকে  উপেক্ষা করে জনগণের জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে চলেছেন। তিনি সবসময় মানুষের উপকার করার চেষ্টা করেন। একদিন হয়তো করোনা চলে যাবে কিন্তু মানবতার তরে দিনাজপুর-৩ আসনের এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম  নিঃস্বার্থভাবে আন্তরিকতার সাথে একনিষ্ঠভাবে কাজ করে চলেছেন তা অনুকরণীয় হয়ে থাকবে। এই দূর্যোগের সময়ে জনগণের জন্য লড়াই করে যাওয়া মানুষটি আল্লাহর কাছে সম্মানিত হয়ে থাকবেন। তিনি জনগণের দোয়ায় ও ভরসায় থাকবেন। করোনা সময়ের কাছে অসহায় মানুষগুলোর কাছে আজীবন তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

ঝিকরগাছায় একজন ভ্যান চালকের নিকট থেকে টাকা ছিনতাই,ভ্যানচালক গুরুতর আহত

 ঝিকরগাছায় একজন ভ্যান চালকের নিকট থেকে টাকা ছিনতাই,ভ্যানচালক গুরুতর আহত




মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত,
ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ

অভিযোগ সূত্র হতে জানা যায়, ঝিকরগাছা উপজেলার অন্তর্গত গদখালী ইউনিয়ন এর বামন আলী গ্রামের দরিদ্র ভ্যান চালক মীর মনির উদ্দিন (৬৫ বছর) পিতা-মৃত মীর ফখরে, গত ৩ জুন আনুমানিক রাত ৯ঃ৩০ঘটিকায় তার নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। ভ্যান চালক মনির উদ্দিন মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন এবং তিনি তার বাড়িতে একাই বসবাস করতেন।

অন্যদিকে বামন আলী (মীরপাড়া) গ্রামের মীর জলিলের মেয়ে মোছাঃ জেরিন খাতুন (১৫ বছর)। মোছাঃ জেরিন খাতুন ৩ জুন রাতে ভ্যান চালক মনির উদ্দিনের বাড়িতে যায় ও মনির উদ্দিনের কাছে থাকা টাকা কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে এবং দুইজনের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। হাতাহাতির একপর্যায়ে জেরিনের কাছে লুকিয়ে রাখা দা দিয়ে মনির উদ্দিনের কাধে সজোরে আঘাত করে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। আহত ভ্যান চালক মনির উদ্দিনের চিৎকার শুনে এলাকাবাসি ছুটে আসে এবং আহত অবস্থায় দেখতে পেয়ে  মনির উদ্দিনকে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। চিকিৎসা শেষে আহত ভ্যান চালক মনির উদ্দিন এখন তার নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন।

ট্রলির ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী ব্র্যাক কর্মী নিহত স্ত্রী আহত

ট্রলির ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী  ব্র্যাক কর্মী নিহত স্ত্রী আহত




রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের নলডাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী ব্র্যাক কর্মী গোলাম মোস্তফা নিহত হয়েছে। 
এ সময় তার স্ত্রী দীপ্তি গুরুতর আহত হয়। শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার পাটুল খাজুরা সড়কে ট্রলির ধাক্কায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত গোলাম মোস্তফা পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার বাসিন্দা। 

এলাকাবাসী জানায়, শুক্রবার সকালে ব্র্যাক কর্মী গোলাম মোস্তফা তার কর্মস্থল নওগাঁ থেকে আত্রাইয়ের রাস্তা ধরে তার নিজ বাড়ি পাবনার সুজানগরে যাচ্ছিলেন। পথে নলডাঙ্গা উপজেলার পাটুল খাজুরা সাবমারসিবল সড়কের খোলাবাড়িয়া ছেড়ে আসার পরে একটি ট্রলির ধাক্কায় গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর কর্মীরা গুরুতর আহত অবস্থায় তার স্ত্রী দীপ্তি এবং তাকে দ্রুত নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক গোলাম মোস্তফা কে মৃত ঘোষণা করে।
 তার স্ত্রী দীপ্তি বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে বজ্রপাতে যুবকের মৃত্যু, শ্যালক আহত

শশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে বজ্রপাতে যুবকের মৃত্যু, শ্যালক আহত



রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার কচুগাড়ী গ্রামে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে বজ্রপাতে মকবুল হোসেন ওরফে টিক্কা খান (৩৩) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এসময় টিক্কা খানের সাথে থাকা শালক সজিব ফকির (২২) আহত হয়েছে। আজ বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে কচুগাড়ী এ ঘটনা ঘটে।

মকবুল হোসেন ওরফে টিক্কা খান উপজেলার বিলকাঠর গ্রামের মৃত সেকেন আলীর ছেলে এবং কচুগাড়ী গ্রামের মুন্নাফ হোসেনের জামাই।
স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার বিকেলে আকাশে মেঘের গর্জন দেখে ধানের খর জরো করতে দুলাভাই শালক বাড়ির বাহিরে যায়। বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে হঠাৎ দুলাভাই টিক্কা খান ও শালক সজিবের সামনে বজ্রপাত হলে দুজনই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তাদের চিৎকারে আত্বীয়স্বজন ও এলাকাবাসী দুজনকে হাসপাতালে নেওয়ার সময় রাস্তায় মকবুল হোসেন ওরফে টিক্কা খান মারা যায় এবং সজিব আলী বর্তমানে গুরুদাসপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মতর্কা মোজাহারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মোংলায় বিশ্ব পরিবেশ দিবসে বক্তারা সুন্দরবনসহ প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় পরিবেশবান্ধব উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করুন

মোংলায় বিশ্ব পরিবেশ দিবসে বক্তারা  সুন্দরবনসহ প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায়  পরিবেশবান্ধব উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করুন



মোঃ এরশাদ হোসেন রনি, মোংলা   
 সেলিব্রেট দ্যা বায়োডাইভারসিটি। টাইম ফর নেচার । সেভ দ্যা পশুর রিভার, সেভ দ্যা সুন্দরবন্স। ক্লাইমেট জাসটিস নাও!শ্লোগানে  মোংলায় ৫ জুন শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এবং পশুর রিভার ওয়াটারকিপার এর আয়োজনে চরকানা রিভার ব্যাংক রোডে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)র বাগেরহাট জেলা সমন্বয়কারী পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মোঃ নূর আলম শেখ। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নাগরিক নেতা আসাদুজ্জামান টিটো, নিরাপদ সড়ক চাই মোংলার সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মিলন, বাপা নেতা আব্দুর রশিদ, কমলা সরকার, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার মাহারুফ বিল্লাহ, সাংবাদিক মোঃএরশাদ হোসেন রনি সহ    প্রমূখ। সমাবেশে বক্তারা করোনাকালের শিক্ষা ও অভিজ্ঞতার আলোকে বিশ্ব ঐতিহ্য বাংলাদেশের ফুসফুস সুন্দরবনসহ প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় পরিবেশবান্ধব উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। বক্তারা বলেন প্রকৃতিকে নিজের মতো করে গুছিয়ে উঠতে দিতে হবে। প্রাণ খুলে শ্বাস নিতে দিতে হবে পৃথিবীকে। মানুষের অতি মুনাফালোভী পরিবেশ-প্রকৃতি বিরোধী উন্নয়ন সহিংসতা বন্ধ করে পরিবেশবান্ধব সবুজ-সুনীল পৃথিবী গড়তে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। পরিবেশ এবং নদীকর্মীরা শিশুদের আঁকা বাঘ-নদী ও সুন্দরবনের পোষ্টার নিয়ে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া সুন্দরবন ধ্বংসের প্রতীকী প্রতিবাদের অংশ হিসেবে মৃত গাছের ডাল নিয়ে তারা মানববন্ধনে দাড়ায়।

দিনাজপুরে নতুন আরো দুইজনসহ জেলায় করোনায় আক্রান্ত ২৬৮ জন : মৃত ২ এবং সুস্থ ৬১ জন

দিনাজপুরে নতুন আরো দুইজনসহ জেলায় করোনায় আক্রান্ত ২৬৮ জন : মৃত ২ এবং সুস্থ ৬১ জন




দিনাজপুর প্রতিনিধি :দিনাজপুরে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আরো দুইজনসহ জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৬৮ জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে বীরগঞ্জে একজন ও খানসামা উপজেলায় একজন। এছাড়া ৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন। 
দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুল কুদ্দুছ বৃহস্পতিবার (৪ জুন) রাত সোয়া ৯টায় গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নতুন আরো দুইজন করোনায় আক্রান্তের খবরটি নিশ্চিত করেছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত রোগির সংখ্যা দাড়ালো ২৬৮ জনে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে বীরগঞ্জে একজন ও খানসামা উপজেলায় একজন। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৫ জনসহ এ পর্যন্ত ৬১ জন সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন। নতুন সুস্থদের মধ্যে সদরে ৩ জন ও খানসামা উপজেলা দুইজন রয়েছে। আর এ পর্যন্ত দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত দুইজনের মধ্যে সদর উপজেলায় একজন পুরুষ ও চিরিরবন্দর উপজেলায় একজন নারী রয়েছেন।
তিনি জানান, আক্রান্ত ২৬৮ জনের মধ্যে রয়েছে সদর উপজেলায় ৬৬ জন (মৃত একজনসহ), কাহারোলে ১২ জন, বিরলে ৩০ জন, বোচাগঞ্জে ৯ জন, পার্বতীপুরে ২১ জন, ফুলবাড়ীতে ৮ জন, নবাবগঞ্জে ২১ জন, হাকিমপুরে ৪ জন, খানসামায় ১১ জন, বিরামপুরে ২৭ জন, ঘোড়াঘাটে ২৬ জন, চিরিরবন্দরে ১৭ জন (মৃত একজনসহ) ও বীরগঞ্জ উপজেলায় ১৪ জন। আর বর্তমানে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ১৬৫ জন, প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রয়েছেন ২৮ জন, হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ১২ জন ও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। 
সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুছ আরো জানান, এ পর্যন্ত ৩৯৭১ নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ৩৬৮৫টি নমুনার ফলাফল এসেছে। বৃহস্পতিবার ৪ জুন দিনাজপুর ল্যাব হতে ৭৫টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ২টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ ও বাকী ৭৩টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। এ নিয়ে দিনাজপুর জেলায় মোট করোনায় (কোভিট-১৯) প্রমানিত রোগির সংখ্যা দাড়ালো ২৬৮ জন। এছাড়া বৃহস্পতিবার ১৮৬টি নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। আর গত ২৪ ঘন্টায় ১৭০ জনসহ এ পর্যন্ত ৯৮০৯ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে প্রেরণ করা হয়েছে ও হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭৫৩৬। বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ২২৭৩ জন।

হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির শাশুড়ি আয়েশা খাতুনের জানাযা ও দাফন সম্পন্ন

হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির শাশুড়ি আয়েশা খাতুনের জানাযা ও দাফন সম্পন্ন




দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এর শাশুড়ী শহরের চাতড়াপাড়া (কুঠিবাড়ী) নিবাসী আয়েশা খাতুন (৭৬) এর জানাযা ও দাফন সম্পন্ন হয়েছে। 
৪ জুন বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে দিনাজপুর গোর এ শহীদ বড় ময়দানে ঈদগাহ মিনারে জানাযা সম্পন্ন করা হয়। জানাযা শেষে শহরের কসবাস্থ আলামিয়া গোরস্থানে দাফন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। জানাযায় অংগ্রহন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুুদুল আলম, পুলিশ সুপার মোঃ আনোয়ার হেসেন বিপিএম, পিপিএম (বার), জেলা দায়রা জজ আব্দুল আজিজ ভুইয়া, দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যান মোঃ আবু বকর সিদ্দিক, সাবেক হাবিপ্রবির ভিসি মোঃ রুহুল আমিন।
এছাড়াও অন্যান্যের দিনাজপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইমদাদ সরকার, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ বকসী বাচ্চু, সাধারন সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল, সাবেক সভাপতি চিত্ত ঘোষ, শহর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রায়হান কবীর সোহাগ, সাধারন সম্পাদক খালেকুজ্জামান রাজু, এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ শিবেস সরকার, পরিচালক ডাঃ নির্মল চন্দ্র সেন, দিনাজপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র শফিকুল হক ছুটু, বিএমএর সভাপতি ডাঃ ওয়ারেস আলী সরকার, সাধারন সম্পাদক ডাঃ বিকে বোস, এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ এর উপাধ্যক্ষ কলেজের উপাধ্যক্ষ ডাঃ নাদির হোসেন, সহযোগি অধ্যাপক ডাঃ নুরুজ্জামান, শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ মশিউর রহমান, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ওয়াহেদুল আলম আর্টিষ্ট,দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক সুব্রত মজুমদার ডলার, সহ পরিবারের সদস্যবৃন্দ।  উল্লেখ্য বার্ধক্য জনিত কারনে ৩ জুন বুধবার আনুমানিক ৪.৪৩ মিনিটে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আয়েশা খাতুন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। 
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। তিনি ২ ছেলে ৪ মেয়ে, নাতী-নাতনি সহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, আওয়ামীলীগ, শহর ও কোতয়ালী আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ, রাজনৈতিক ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ গম ও ভ্ট্টুা গবেষণা ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীরা প্রো-ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ নতুন ভুট্টার জাত আবিস্কার করেছে

বাংলাদেশ গম ও ভ্ট্টুা গবেষণা ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীরা প্রো-ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ নতুন  ভুট্টার জাত আবিস্কার করেছে




দিনাজপুর প্রতিনিধি : এবার মানুষের খাদ্য চাহিদা পুরণ করবে ভুট্টা। সেই লক্ষ্যে প্রো-ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ নতুন ভুট্টার জাত আবিস্কার করেছেন বাংলাদেশ গম ও ভ্ট্টুা গবেষণা ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীরা। তারা জানান, উদ্ভাবিত এই নতুন জাত খুব শিঘ্রই কৃষক পর্যায়ে অবমুক্ত করা হবে। এতে কৃষকরা যেমন লাভবান হবে তেমিন দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী এক ইঞ্চি জমিও যাতে অনাবাদি না থাকে সেই লক্ষ্যে নতুন নতুন গবেষণার কাজও চালিয়ে যাচ্ছেন এ গবেষণা ইনস্টিটিউট এর বিজ্ঞানীরা।
বাংলাদেশ গম ও ভ্ট্টুা গবেষণা ইন্সটিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আলমগীর মিয়া জানান, উদ্ভাবিত নতুন এ জাত কৃষক পর্যায়ে ছড়িয়ে দিতে পারলে মানব দেহে ভিটামিন এ এর অভাবে বিভিন্ন রোগ হয়ে থাকে যেমন, ত্বকের শুস্কতা, অন্ধত্ব, স্বল্প উচ্চতা, গলা ও বুকের জটিলতা ইত্যাদি। প্রো-ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ জাতের ভুট্টা মানব দেহে ভিটামিন এ এর অভাব পুরণ করবে। 
কৃষক মো. দবিরুল ইসলাম জানান, বিদেশ নির্ভর জাত বীজে ভুট্টার চাষ করছে বাংলাদেশের কৃষকরা। তবে আগামীতে দেশের প্রো ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ নতুন ভুট্টার জাত কৃষক পর্যালে আসলে আবাদের পাশাপাশি অন্যান্য কৃষকদেরও উদ্বুদ্ধ করবো। কারণ এই প্রো ভিটামিন এ সমৃদ্ধ নতুন ভুট্টা জাতে অধিক ফলন পাওয়া যাবে এবং কৃষকরা লাভবান হবে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।
বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. এছরাইল হোসেন জানান, বাংলাদেশে ভুট্টার চাষ দিন দিন বাড়ছে। চলতি রবি ও খরিপ মৌসুমে ৫ লক্ষ ১৭ হাজার হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে। আর তা থেকে ফলন পাওয়া গেছে ৫১ লক্ষ মেট্রিক টন। যা গত মৌসুমের চেয়ে ৪ লক্ষ মেট্রিক টন বেশি। সারা বছর দেশে ভুট্টার চাহিদা রয়েছে ৬৫ লক্ষ মেট্রিক টন। যা আগামী ২/৩ বছরের ব্যবধানে উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে চাহিদার লক্ষ্যমাত্রা পুরণ করা সম্ভব হবে। তবে বর্তমানে দেশে যে পরিমাণ ভুট্টার আবাদ হয় তার সিংহ ভাগই ব্যবহৃত হয় পোল্ট্রি, ডেইরি ও মৎস খামারে। আর অল্প কিছু ব্যবহৃত হয় মানুষের খাদ্য হিসেবে। মানুষের খাবার তালিকায় ভুট্টা ব্যবহারে চাহিদা সৃস্টি করতে প্রো-ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ ভুট্টার এই নতুন জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। যা আগামী এক বছরের মধ্যে কৃষক পর্যায়ে বিতরণ করা হবে। আর  এতে বিঘা প্রতি (৩৩ শতকের) ৪০ মন ও একরে ১২০ মন ভুট্টা পাওয়া যাবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আগামিকাল যেসব এলাকায় বিদুৎ থাকবেনা:

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আগামিকাল যেসব এলাকায় বিদুৎ থাকবেনা:



শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
আগামীকাল (০৬/০৬/২০২০ খ্রিঃ) ভোলাহাট মেডিকেল মোড়  ও পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় রক্ষনাবেক্ষন কাজের জন্য সকাল ৮.০০টা থেকে দুপুর ২.০০টা পর্যন্ত ভোলাহাট ও গোহালবাড়ী এলাকায় (মেডিকেল মোড়, উপজেলা,আম ফাউন্ডেশন, তেলিপাড়া,চর ধরমপুর, বজরাটেক, কানারহাট, মুন্সীগঞ্জ বাজার, সাঠিয়ার বাজার, গোপিনাথপুর ও থানা এলাকায়) বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে।এখন পর্যন্ত পাওয়া খবর ভলোহাট উপজেলায় বিদুৎ থাকবেনা।পরবর্তীতে কোন নোটিশ থাকলে জানিয়ে দিবে আমার চাঁপাই।

গ্রাহক সাধারনের সাময়িক এই অসুবিধার জন্য কর্তৃপক্ষ দুঃখ প্রকাশ করছে।

দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর নাগরপুর উপজেলা সাংবাদিক হিসাবে নিয়োগ পেলেন সজিব হুসাইন মোহাম্মদ হাসান

দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর  নাগরপুর উপজেলা সাংবাদিক  হিসাবে নিয়োগ পেলেন সজিব হুসাইন মোহাম্মদ হাসান




কপোতাক্ষ নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনলাইন গণমাধ্যম পোর্টাল দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ সত্য প্রকাশে অবিচল শ্লোগানকে ধারন করে এগিয়ে চলেছে।বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বেশীরভাগ দেশের প্রবাসী বাংলাদেশি পাঠকের জন্য ২৪ ঘন্টাই প্রকাশ করে চলেছে। পাঠকের কাছে পোর্টাল হিসাবে শীর্ষস্থানে থাকা দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর টাংগাইল জেলার নাগরপুর উপজেলা ইউনিটের জন্য সাংবাদিক এর দায়িত্ব প্রদান করলেন মেধাবী ছাত্র ও সাহসী কলম সৈনিক সজিব হুসাইন মোহাম্মদ হাসানকে। 
এই নিয়োগের ফলে জ্বনাব হাসান তার এরিয়ায় সংবাদ সংক্রান্ত কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার পাশাপাশি পাঠকের চাহিদা পূরণেও ভূমিকা রাখবেন।                                        গত বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০ ইং হাসানকে দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, সম্পাদক ও প্রকাশক বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সাহসী সাংবাদিক নেতা প্রভাষক মোঃ মহসীন আলী নিয়োগ প্রদান করেন।সজিব হুসাইন মোহাম্মদ হাসান ইসলাম, সরকারি তিতুমীর কলেজে ইসলামিকশিক্ষা বিভাগের চর্তুথ বর্ষে পড়াশোনা করেছেন। তিনি আমরা নাগরপুর বাসী অনলাইন গ্লুপের প্রধান এ্যাডমিন ও প্রতিষ্ঠাতা এবং নাগরপুরের ঐতিহ্যবাহী দুয়াজানী কলেজ পাড়া ছাত্র কল্যান পরিষদের মহাসচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। জ্বনাব হাসান টাংগাইল জেলা দৈনিক কপোতাক্ষ নিউজ এর প্রতিনিধি নাগরপুরের সুপরিচিত বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও চিকিৎসক সাহসী ও বাংলাদেশ জার্নালিজম অনলাইন স্কুল ছাত্র ফোরামের সম্মানিত সদস্য জ্বনাব ডা.এম.এ.মান্নানের আপন বড় চাচা ছেলে (চাচাতো ভাই) বাড়ি.দুয়াজানী কলেজ পাড়া,নাগরপুর, টাংগাইল। 
নব নিযুক্ত নাগরপুর উপজেলা প্রতিনিধি জ্বনাব সজিব হুসাইন মোহাস্মদ হাসান তার অভিমত জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমি আমার  পেশাগত যোগ্যতা এবং অভিজ্ঞতাকে অনলাইন গণমাধ্যমে কাজে লাগাবো এবং সকলের সহযোগীতা কামনা করছি।জ্বনাব সজিব হাসান আরও বলেন,সাংবাদিকতা পেশা একটা মহান পেশা ও জাতির আমানত ও দর্পন। আমি আমার অর্পিত দায়িত্ব পালন করবো অত্যন্ত মনোবল ও সাহস দিয়ে। মনের ভিতরে চিন্তাই করতাম না আমি সাংবাদিক হবো মানবিক ডা. ও আমার ভাই ডা.এম.এ.মান্নান ভাই আমাকে সাংবাদিকতা মত মহান পেশায় যুক্ত করেছেন, মহান আল্লাহ দরবারে শুকুরিয়া আলহামদুলিল্লাহ। আমি ধন্যবাদ জানাই মান্নান ভাইকে এবং জনপ্রিয় অনলাইন পোর্টাল এর সম্মানিত সম্পাদক ও প্রকাশক শিক্ষাগুরু প্রভাষক মোঃ মহসীন স্যারকে। কারন মহসীন স্যার আমাকে শর্তহীন নিয়োগ প্রদান করছেন আর মান্নান ভাই সাংবাদিক হওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন তাদের প্রতি চির কৃতজ্ঞ ও ভালবাসা থাকবে ইনশাআল্লাহ।

মাধবপুরে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ, অষ্টম শ্রেণির ছাত্র আটক,

মাধবপুরে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ, অষ্টম শ্রেণির ছাত্র আটক,




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুরে চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে হৃদয় মিয়া (১৪) নামে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (০৪ জুন) বিকালে মাধবপুর উপজেলার নয়াপাড়া ইউনিয়নের নারায়ণপুর গ্রামের নারায়ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রী (৯) বাড়ির পাশে রাস্তায় জাম গাছের নিচে জাম কুড়াতে যায়।

এসময় পাশের বাড়ির তকদীর হোসেনের ছেলে হৃদয় মিয়া ঘুড়ি ওড়ানোর লোভ দেখিয়ে ঘুড়ির সুতা ঠিক করে দেওয়ার কথা বলে ওই শিশু শিক্ষার্থীকে ফুসলিয়ে ঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

আটককৃত হৃদয় মিয়া উপজেলার জগদীশপুর জে সি হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ধর্ষককে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মাধবপুর থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।