সাতক্ষীরায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ২ লক্ষ টাকার চেক প্রদান

সাতক্ষীরায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ২ লক্ষ টাকার চেক প্রদান


স্টাফ রিপোর্টারঃ করোনা মহামারিতে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে তালা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পক্ষ থেকে ২ লাখ টাকার চেক প্রদান করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামালের হাতে ২ লাখ টাকার চেক তুলে দেন তালা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মফিজউদ্দীন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ সুভাষ সরকার, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড সাতক্ষীরার সদস্য সচিব লায়লা পারভীন সেজুতি প্রমুখ।

এসময় মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মফিজউদ্দীন বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে দেশ আজ ক্রান্তিকাল পার করছে। করোনা ভাইরাসের কথা বিবেচনা করে সাতক্ষীরার মুক্তিযোদ্ধারা দেশের মানুষের সহযোগিতার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ তহবিলে ২ লাখ টাকার চেক প্রদান করে দেশ ও দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে

মাগুরায় হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধ

মাগুরায়  হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধ



স্টাফ রিপোর্টারঃ   মাগুরায় অবিলম্বে করোনা টেষ্ট ল্যাব, সদর হাসপাতালে হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

বৃহস্পতিবার সকালে মাগুরা প্রেসক্লাবের সামনে করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় গণকমিটি মাগুরা জেলা এ মানববন্ধনের আয়োজন করে । মানববন্ধনে সংক্ষিপ্ত  সমাবেশে বক্তব্য রাখেন করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় গণকমিটির জেলা শাখার সভাপতি এটিএম মহব্বত আলী, কেন্দ্রীয় সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শম্পা বসু  ও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে মাগুরা সদর হাসপাতালে করোনা টেস্ট ল্যাব, হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর স্থাপনের দাবি জানান । তাছাড়া মানববন্ধনে বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহারের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানানো হয় ।

আযানের ধবনি থামলো ছেলের চাকুর আঘাতে!

আযানের ধবনি থামলো ছেলের চাকুর আঘাতে!


ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ জীবনে এমন কিছু ঘটনা আছে, যাহা লিখতে ও হাত কাঁপে। আজ ১৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার, ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উপজেলা লস্করদিয়া ইউনিয়নের গোড়াইল গ্রামের মোঃআছিউদ্দিন ফকির, একই গ্রামের রব্বানী বাড়ীর জামে মসজিদে ইমামতি করেন।প্রতিদিনের ন্যায় আজ ফজরের আজানরত আবস্থায় তার ছেলে লস্করদিয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি, মোঃশহিদুল ইসলাম। তার হাতে থাকা ধারালো চাকু দিয়ে হত্যার উদ্যেশে বাবার গলায় কোপ মারলে আজান বন্ধ হয়ে যায়।পরে এলাকাবাসি এসে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে নগরকান্দা হসপিটালে,অবস্থা খারাপ হলে পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হসপিটালে ভর্তি করা হয়।আল্লাহর কাছে দোয়া করি হে আল্লাহু আপনি এমন ছেলে সন্তান কাউকে দিয়েন না। পরিশেষে নগরকান্দা থানা সেকেন্ড অফিসার মো রবিউল ও তার টিম আসামিকে গ্রেপ্তার করে।অভিনন্দন জানাই পুলিশ টিমকে। এবং এই কুলাঙ্গার ছেলের কঠিন শাস্তি কামনা করছি, যা দেখে অন্য কোন ছেলে এমন জঘন্য অপরাধ করতে সাহস না পায়।

বদলগাছীতে নয় বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল সহ গ্রেফতার-১

 বদলগাছীতে নয় বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল সহ গ্রেফতার-১

নওগাঁ জেলা বদলগাছীতে নয় বোতল আমদানি নিষিদ্ধ ভারতীয় ফেন্সিডিলসহ  এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছেন বদলগাছী থানা পুলিশ।

পুলিশ এক বিবৃতিতে জানান গ্রেফতারকৃত আসামি বদলগাছী উপজেলা জিয়ল গ্রামের মৃত মোঃ মজিবুর মন্ডল এর ছেলে এরশাদ মণ্ডল ( ৪০)মণ্ডলকে ১৩-৮-২০ বৃহস্পতিবার

জেলা পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া বিপিএমএর নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দেবপুর সার্কেল জনাব আবু সালেহ মোহাম্মদ আশরাফুল আলম এর নেতৃত্বে অফিসার ইনচার্জ জনাব মোহাম্মদ চৌধুরী যোবায়ের আহাম্মেদ বদলগাছী থানা নওগাঁ  এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে এসআই গৌরাঙ্গ মোহন রায় এসআই মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক এসআই মিলন কুমার রায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে আসামিকে গ্রেপ্তার করেন।  

পুলিশ জানান নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়।

আশাশুনি সমবায় অফিসের জরাজীর্ণ সিলিং ভেঙ্গে পড়েছে ॥ অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা এক কর্মকর্তার

 আশাশুনি সমবায় অফিসের জরাজীর্ণ সিলিং ভেঙ্গে পড়েছে ॥  অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা এক কর্মকর্তার




আহসান  উল্লাহ  বাবলু  উপজেলা প্রতিনিধি ঃ আশাশুনি উপজেলা পরিষদের মধ্যে অবস্থিত সমবায় অফিসের জরাজীর্ণ সিলিং ভেঙ্গে পড়েছে। অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন এক কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৩ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

উপজেলা পরিষদের দু’টি সেমি পাকা বিল্ডিং দীর্ঘদিন যাবৎ শোচনীয় হয়ে পড়েছে। একটি বিল্ডিংয়ে মৎস্য অফিস, সমবায় অফিস ও পরিসংখ্যাণ অফিস চলছে। এ বিল্ডিংটি থানাকে উপজেলা পরিষদ ঘোষণার প্রথমেই নির্মীত। এখানে সে সময় উপজেলা পরিষদ মিলনায়ত হিসাবে ব্যবহার করা হতো। উপজেলা পরিষদকে মডেল ঘোষণার পর পরিষদে দ্বিতল ভবন নির্মীত হলে সেখানে অনেক অফিস ও মিলনায়তন শিপট করা হয়। সেই থেকে পুরনো মিলনায়তনটিকে চাচের (বাঁশের চটা/চেচাড়ি দিয়ে) নির্মীত পাটিশানের মাধ্যমে ৬টি কক্ষ করে সেখানে কয়েকজন কর্মকর্তার কার্যালয় ও কর্মচারীদের বসার ব্যবস্থা করা হয়। এরপর দ্বিতল ভবন আবারও পরিত্যাক্ত ঘোষণা করে নতুন ভবন নির্মান করা হলেও সেই পুরনো আদলের সেমি পাকা টিন সেডের মিলনায়তনটি অপসারণ করা হয়নি। সেখানে অন্ধকার ও পর্যাপ্ত জানালা ছাড়া সংকীর্ণ কক্ষে এখনো মৎস্য, সমবায় ও পরিসংখ্যান অফিস চলছে। অফিস সংশ্লিষ্টরা অতি কষ্টে এখানে অফিস করে আসছেন। প্রাণের ভয়কে তুয়াক্কা না করে অনেকটা বাধ্য হয়ে এখানে অফিস করে যাচ্ছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৩ টার দিকে কর্মকর্তার কক্ষে যখন একজন (পরিদর্শক সন্যাসী চরণ) অফিসের এক কোণে বসে কাজ করছিলেন। তখন হঠাৎ করে কক্ষের সিলিং সম্পূর্ণ একসাথে ভেঙ্গে পড়ে। তিনি দ্রুত টেবিলের পাশে মাথা টেনে নেওয়ায় আল্লাহর রহমতে প্রাণে রক্ষা পান। তাছাড়া কর্মকর্তাসহ অন্য কেউ সেখানে না থাকায় তারাও প্রভুর দয়ায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন। সাথে সাথে পাশের অফিস কক্ষের কর্মচারীরা ভীত হয়ে ছুটে কক্ষ থেকে বেরিয়ে পড়েন। অন্য অফিসগুলোর সিলিং কিংবা টিনের চাল কখন ভেঙ্গে পড়ে এনিয়ে চিন্তার অন্তনেই সংশ্লিষ্টদের। অন্যদিনে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসটিও সেমি পাকা টিনসেডের ঘরে চলছে। বর্তমান যুগে উপজেলা গেটের মুখে ভবনটি বেজায় বেমানান হয়ে রয়েছে। অফিস ঘরটিও ঝুঁকিতে আছে। সেমি পাকা অফিস ঘরগুলো দ্রুত অপসারণ করা প্রয়োজন।

কয়েকদিন ধরে হাসপাতালে বেডে জীবন মরণের ঝুকিতে অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধু

কয়েকদিন ধরে হাসপাতালে বেডে জীবন মরণের ঝুকিতে অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধু


  মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃমোংলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধুর উপর অমানসিক নিযার্তনের অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রতিপক্ষ প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে। পেট ও পিঠসহ শরীরের বিভিন্নস্থানে গুরুতর আঘাত পেয়ে আহত গৃহবধু কয়েকদিন ধরে হাসপাতালের বেডে জীবন মরণের ঝঁুকিতে রয়েছে। 


থানায় দাখিলকৃত অভিযোগ ও নিযার্তনের শিকার গৃহবধুসহ তার স্বজনেরা জানান, উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের উত্তর চাঁদপাই গ্রামের হাবিব মোড়লের ৭ মাসের অন্ত:সত্ত্বা স্ত্রী চম্পা বেগম (২২) মঙ্গলবার দুপুরে প্রতিবেশী মুরাদ শেখের (২৬) বাড়ীর উপর দিয়ে অপর প্রতিবেশীর বাড়ী যাচ্ছিল। এ সময় ওই বাড়ীর মালিক মুরাদ শেখ চম্পার গতিরোধ করে এবং তার বাড়ীর উপর দিয়ে যাওয়ার ঘটনায় তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে অশ্লীল গালিগালাজ করতে থাকেন। খবর পেয়ে চম্পার দেবর মারুফ মোড়ল সেখানে গেলে মুরাদ তাকেও গালিগালাজ করে। এতে উভয় পক্ষ বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এর এক পযার্য়ে মুরাদসহ তার পরিবারের লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে চম্পা ও মারুফকে বেদম মারপিট করেন। পরে সেখান থেকে তাদেরকে উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। মারুফ প্রাথমিক চিকিৎসায় কিছুটা সুস্থ্য হলেও হাসপাতালের বেডে জীবন মরণের সন্ধীক্ষণে রয়েছে চম্পা বেগম। কিছুটা সুস্থ্য হওয়ার পর মারুফ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার থানা একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 


এদিকে প্রতিবেশী প্রতিপক্ষ ও অভিযুক্ত মুরাদ শেখের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল ফোনটি (০১৯৩৩৮২২৪৭৬) বন্ধ পাওয়া যায়।  


এ বিষয়ে মোংলা থানার এসএই বিশ্বজিৎ মুখাজর্ী বলেন, খবর পেয়ে আমি তাৎক্ষনিকভাবে হাসপাতালে গিয়ে ওই মহিলাকে দেখে আসি। এরপর ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত চলছে, তদন্ত শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

আশাশুনিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতিবিনিময় সভা

 আশাশুনিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতিবিনিময় সভা



আহসান  উল্লাহ  বাবলু উপজেলা প্রতিনিধি ঃ আশাশুনি উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের অংশ গ্রহনে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার উপজেলা শিক্ষা অফিসের উদ্যোগে এ সভার আয়োজন করা হয়। 

উপজেলা শিক্ষা অফিসার গাজী সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভার শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমাননের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর বিদেহী আত্মার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়ে সভার কাজ শুরু করা হয়।  সভায় যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  এর ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী উদযাপন, "ঘরে বসে শিখি" রেডিও এবং টিভিতে সম্প্রচারিত অন লাইন পাঠদান বিষয়, প্রতি সপ্তাহে একদিন প্রধান শিক্ষক তাঁর বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকবৃন্দের সঙ্গে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে মতবিনিময় করা, বিষয় ভিত্তিক দু’দিনের সঞ্জীবনী প্রশিক্ষণ দ্রুত শুরু করাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলেচনা করা হয়। এজন্য সকল শিক্ষকের এ্যানড্রয়েড ফোন থাকা এবং জুম অ্যাপসের ব্যবহার সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে গুরুত্ব আরোপ করা হয়।

ডাঃ রুহুল হক এমপি পত্নীর মৃত্যুতে আশাশুনিউপজেলা আওয়ামীলীগের শোক

ডাঃ রুহুল হক এমপি পত্নীর মৃত্যুতে আশাশুনিউপজেলা আওয়ামীলীগের শোক




আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা প্রতিনিধি ঃ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী 


অধ্যাপক ডাঃ আ.ফ.ম রুহুল হক এমপি পত্নীর মৃত্যুতে আশাশুনি উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ ও শোকাহত পরিবারকে সমবেদনা জানানো হয়েছে। বুধবার রাত ৯.৫৫ মিনিটে ঢাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে এমপি পত্নী মিসেস ইলা হক ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্বামী এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তান সহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। এমপি পত্নী ইলা হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও শোকাহত পরিবারকে সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন-আশাশুনি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম, সাধারণ সম্পাদক শম্ভুজিত মন্ডল, সাবেক সহ-সভাপতি নীলকণ্ঠ সোম, রফিকুল ইসলাম মোল্যা, রাজ্যেশ্বর দাস, ইউপি চেয়ারম্যান আ.ব.ম মোছাদ্দেক, সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবু হেনা সাকিল, ইউপি চেয়ারম্যান স,ম সেলিম রেজা মিলন, শেখ জাকির হোসেন, আলমগীর আলম লিটন, প্রভাষক ম. মোনায়েম হোসেন, শেখ মিরাজ আলী, দীপঙ্কর কুমার সরকার, জেলা পরিষদ সদস্য মহিতুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ বাচ্চু, দপ্তর সম্পাদক জগদীশ চন্দ্র সানা। আশাশুনি উপজেলা আওয়ামীলীগ এক শোক বার্তায় শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। #

তরুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তাঁর রাজনীতির দর্শন জানতে হবে - পলক

তরুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তাঁর রাজনীতির দর্শন জানতে হবে - পলক



রাজু আহমেদ, সিংড়া: 

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন,  

বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে মাত্র ৯ মাসে স্বাধিনতা এনে দিয়েছেন।  কিন্তু তিনি ঘাতকদের নির্মম হাতে শাহাদত বরন করেছিলেন।  ঘাতকরা বাঙ্গালীর চেতনাকে হত্যা করতে পারেনি জন্য তারা টার্গেট করেছিলো বঙ্গবন্ধু কে হত্যা করে বাংলাদেশকে পঙ্গু করে দিতে। সদ্য স্বাধিন বাংলাদেশকে বঙ্গবন্ধু দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন।  কিন্তু বিদেশী প্রভূদের মদদে ফজরের আজানের সময় নির্মম ভাবে হত্যা করেছিলো ঘাতকরা।  বঙ্গবন্ধু সাধারন জীবন যাপন করছিলেন, লোভ, লালসা, আরাম আয়েশকে তিনি বিসর্জন দিয়ে বাংলাদেশকে তিনি অকৃত্রিমভাবে ভালোবাসতেন। দেশকে এবং দেশের মানুষকে খুব ভালোবাসাই তাঁর জীবনের কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিলো।  তিনি মানুষের ভালোবাসার মাঝে ছিলেন, থাকবেন আজীবন।  তাঁর আদর্শ বেঁচে থাকবে সবসময়। ছোটকাল থেকে বঙ্গবন্ধু মানুষের পাশে ছিলেন, ছাত্র বয়সে ছাত্রদের ন্যায্য দাবি আদায়ে আন্দোলন করেছেন।  তিনি ছাত্রত্ব বিসর্জন দিয়েছেন কিন্তু আদর্শকে বিসর্জন দেননি।  দেশের জন্য নিজের জীবনকে বিসর্জন দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু। 


তিনি আরো বলেন, তরুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তাঁর রাজনীতির দর্শনকে জানতে হবে। তরুন প্রজন্মকে তাঁর ইতিহাস জানতে দেয়া হয়নি।  তাঁর জীবনকে ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছিলো।  

বঙ্গবন্ধু দু কন্যা দেশের বাইরে ছিলেন জন্য তারা বেঁচে গেছিলেন। কিন্তু ঘাতকদের বুলেটে বাঁচতে পারেনি ছোট্র রাসেল।  

বিএনপি জামায়াত সরকার নির্মম ভাবে ২০০১ সালে হত্যার রাজনীতি শুরু করে। 

আওয়ামীলীগের বহু নেতা কে হত্যার শিকার হতে হয়েছে। পঙ্গুত্ব বরন করতে হয়েছে। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারকে জনগন পুনরায় ক্ষমতায় এনেছে। 

বাংলাদেশকে তিনি উন্নত রাষ্ট্রে পরিনত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। 


তিনি আরো বলেন, বিগত দিনে জনগনের পাশে কেউ দাঁড়ায়নি।  অথচ আমরা বিগত সকল দুর্যোগ এবং বন্যায় জনগনের পাশে আছি, এবং থাকবো ইনশাআল্লাহ।


প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, সিংড়া পৌরসভা ১৬ বছর উন্নয়ন ব্যহত হয়েছে।  আমরা ৫ বছরে তিনগুন উন্নয়ন করেছি।  দমদমা এলাকার উন্নয়ন করেছি, ৫০ শয্যার হাসপাতাল করেছি। তিনটি এ্যাম্বুলেন্স প্রদান করেছি।  স্কুল, কলেজে নতুন ভবন দিয়েছি। জনগন এখন সেবা পাচ্ছে, উন্নয়ন পাচ্ছে। দমদমা মাটি আওয়ামী লীগের ঘাটি হিসেবে পরিচিত। আমরা উন্নয়নকে অব্যহত রাখতে চাই।  এজন্য  অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন এবং বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফেরাত কামনা করেন।


বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টায় নাটোরের সিংড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে দোআ ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি।  


১.২.৩ নং ওয়ার্ড সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের যৌথ আয়োজনে নাজিম উদ্দিন, রামপ্রসাদ ও আবুল কালামের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও সিংড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব জান্নাতুল ফেরদৌস।  


আরো বক্তব্য রাখেন, ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর দেদার হায়াত বেনু, পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আব্দুস সোবাহান, শ্রমিক লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম,  আওয়ামী লীগ নেতা গোপাল বিহারী দাস, আওয়ামী লীগ নেতা শরফরাজ নেওয়াজ বাবু প্রমূখ। 


আরো উপস্থিত ছিলেন, জিএ সরকারী কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ আতিকুর রহমান,  উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন, 

কৃষকলীগের নেতা কাজী স্বপন, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট সাইদুর রহমান সৈকত, পৌর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম,  উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খালিদ হাসানসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।  


মোনাজাত পরিচালনা করেন, উপজেলা ওলামালীগের সভাপতি মাওলানা আব্দুস শাকুর।  


অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক নাজমুল হক বকুল।

যশোর থেকে চোরাই ১৮ টি অটোরিক্সা (ইজিবাইক) উদ্ধার

যশোর থেকে চোরাই ১৮ টি অটোরিক্সা (ইজিবাইক) উদ্ধার




সুমন হোসেন, যশোর জেলা প্রতিনিধি। 

যশোর জেলা ডিবি পুলিশ কর্তৃক আন্তঃজেলা অটোরিক্সা (ইজি বাইক)  চোর চক্রের ০৩ সদস্য গ্রেফতার, চোরাই ১৮ টি অটোরিক্সা (ইজিবাইক) উদ্ধার।


ঘটনার বিবরণঃ


রফিজ গাজী (৪০), পিতা- মৃত নওশেদ গাজী, সাং-চাকই, থানা-নড়াইল সদর, জেলা-নড়াইল, সে একজন ইজিবাইক চালক। তার সাথে ইং ২৭/০৭/২০২০ তারিখ সকাল ১০.০০ ঘটিকার সময় শংকরপাশা চৌরাস্তা ঘাট হতে অভয়নগর থানাধীন দেয়াপাড়া ব্রীজ যাওয়ার পথে অজ্ঞাত ০২জন আরোহীর সাথে পরিচয় হয়। 


তারা মাছের ব্যবসা করে মর্মে পরিচয় দিয়া মোবাইল নম্বর আদান-প্রদান করে। পরের দিন ইং ২৮/০৭/২০২০ ইং তারিখ দুপুর ১০.০০ ঘটিকার সময় ইজি বাইক চালক রফিজ গাজীকে অপরিচিত আরোহীদের মধ্যে একজন মোবাইলে ফোন করে দেয়াপাড়া ব্রীজে যেতে বললে সে তার গ্রীন রংয়ের ইজি বাইক নিয়া বেলা ১২.০০ ঘটিকার সময় দেয়াপাড়া ব্রীজের উপর যায়।


তখন অজ্ঞাতনামা আরোহীদের মধ্যে ১ জন তার গাড়ীতে উঠে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বসুন্দিয়া রেলষ্টেশন এলাকায় জংগলবাধাল নামক স্থানে একটি দু’তলা বিল্ডিং এর নীচতলায় তাদের ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়।


সেখানে তারা তাকে ভাত খাইতে দিলে, সে মাংসভাত ও ডাল ভাত খায়। এর পর সে অচেতন হয়ে পড়ে। উদ্ধার পরবর্তী ইং ০২/০৮/২০২০ তারিখে তার যশোর জেনারেল হাসপাতালে জ্ঞান ফেরে এবং সে জানতে পারে তাকে ২৯/০৭/২০২০ তারিখ সন্ধ্যা অনুমান ১৯.৩০ ঘটিকার সময় বসুন্দিয়া একটি বাসা থেকে পুলিশের সহায়তায় তার আত্মীয়স্বজন ঘরের তালা ভেঙ্গে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।


অজ্ঞাতনামা দুস্কৃতকারীরা তাকে অপহরণ করে নিয়ে খাদ্যের সাথে চেতনা নাশক ঔষধ খাওয়ায়ে অজ্ঞান করে তার গ্রীন রংয়ের ইজিবাইক ও সাথে থাকা মোবাইল ফোন, নগদ ২,৫০০/- টাকা চুরি করে নিয়ে যায় ও তাদের সহযোগীদের মাধ্যমে ভিকটিমের পরিবারের নিকট মুক্তিপন দাবী করে।


ভিকটিম পুরোপুরি সুস্থ্য হয়ে গত ১১/০৮/২০২০ ইং তারিখে অভয়নগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে অভয়নগর থানার মামলা নং-০৬ তাং-১১/০৮/২০২০ ইং ধারা-৩৬৪/৩৮৫/৩২৮/৩৭৯ পেনাল কোড রুজু হয়।


মামলাটি চাঞ্চল্যকর ও স্পর্শকাতর হওয়ায় জেলা পুলিশ সুপার জনাব মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন, পিপিএম যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখার উপর তদন্তভার ন্যাস্ত করেন।


গ্রেফতার ও উদ্ধার অভিযানঃ


জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ সোমেন দাশ এর নেতৃত্বে গত ইং ১২/০৮/২০২০ তারিখ দুপুর ১৩.০০ ঘটিকার সময় গোপালগঞ্জ সদর থানাধীন গোলাবাড়ীয়া এলাকায় যশোর ডিবি’র একটি টিম অভিযান পরিচালনা করে জনৈক ওয়াজেদ আলী মুন্সির একটি গোডাউন ঘর হতে ইজিবাইক চোর চক্রের মূল হোতা ০২ সদস্য ১। আলম ফরাজি (৪৪) ২। মোঃ রবিউল ইসলাম (৪৮) দেরকে গ্রেফতার করে এবং তাদের হেফাজত হতে অন্য একজন অপহৃত ভিকটিম মোঃ ইমরান শেখ (২০), পিতা- আঃ সামাদ শেখ, সাং- কাজলিয়া, থানা- গোপালগঞ্জ সদর, জেলা-গোপালগঞ্জ নামের ইজিবাইক চালককে তার ব্যবহৃত ইজিবাইকসহ উদ্ধার করা হয়।


ধৃত আসামীদের হেফাজত হতে অভয়নগর থানার মামলার ভিকটিম রফিজ গাজীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনসহ মোট ০৮টি মোবাইল সেট, ৭০ পিচ চেতনা নাশক ঔষধ, খাদ্য সামগ্রী, খাদ্য খাওয়ার প্লেট/বাটি জব্দ করা হয়।


ধৃত আসামীদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক তাদেরকে নিয়ে একই দিন ২০.০০ ঘটিকার সময় কুষ্টিয়া সদর থানাধীন চৌড়হাস ফুলতলা এলাকায় মিজানুর রহমান @ মেজর (৪০) এর অটো গ্যারেজে অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিম রফিজ গাজীর গ্রীন রংয়ের ইজিবাইকসহ তাদের কথিতমতে বিভিন্ন ঘটনার ০৩ টি চোরাই  ইজি বাইক জব্দ করা হয়। 


এছাড়াও উক্ত অটো গ্যারেজ হইতে চোরাই সন্ধিগ্ধ ১৫টি ইজি বাইক যশোর জেলা ডিবি টিমের সহায়তায় কুষ্টিয়া সদর থানা পুলিশ জব্দ করে থানা হেফাজতে রাখেন (যার আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন)। 


প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত আসামীগন অভয়নগর থানার মামলার ঘটনা ছাড়াও ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর, সাতক্ষীরা জেলার পাটকেলঘাটা, মাগুরা জেলার শালিখা থানা এলাকায় একই পদ্ধতিতে ইজি বাইক চুরি করার দায় স্বীকার করে।


গ্রেফতারকৃত আসামীদের নাম ঠিকানাঃ


১। আলম ফরাজি @ মহারাজ (৪৪), পিতা- মৃত আঃ ওহাব ফরাজি, মাতা- মৃত আমেনা খাতুন, স্থায়ী সাং- নয়াপাড়া, বর্তমান সাং-বাইজুরা, থানা-তালতলী, জেলা-বরগুনা ( ভাসমান থাকে )

২। মোঃ রবিউল ইসলাম (৪৮), পিতা- মৃত হাবিবুর রহমান, মাতা- সাজেদা বেগম, স্থায়ী সাং- সীতারামপুর মধ্যপাড়া, থানা- কোতয়ালী, জেলা-যশোর ( ভাসমান)

৩। মোঃ মিজানুর রহমান @ মেজর (৩৮), পিতা- মৃত কুতুব উদ্দিন, মাতা- মাজেদা বেগম, স্থায়ী সাং- চৌড়হাস ফুলতলা, মতি মিয়া সড়ক, থানা- কুষ্টিয়া সদর, জেলা-কুষ্টিয়া।


অপহৃত ভিকটিম উদ্ধারঃ

১। রফিজ গাজী (৪০), পিতা- মৃত নওশেদ গাজী, সাং-চাকই, থানা-নড়াইল সদর, জেলা-নড়াইল।

২। মোঃ ইমরান শেখ (২০), পিতা- আঃ সামাদ শেখ, সাং- কাজলিয়া, থানা- গোপালগঞ্জ সদর, জেলা-গোপালগঞ্জ।


উদ্ধারকৃত আলামতঃ

১। ইজিবাইক ১৮টি (১৫টি ইজি বাইক কুষ্টিয়া সদর থানা পুলিশের হেফাজতে বিধি মোতাবেক জমা আছে)।

২। চেতনা নাশক ঔষধ ৭০ পিচ।

৩। ০৯টি মোবাইল ফোন।

৪। থালা/বাসন ( খাদ্য খাওয়ার সরঞ্জাম)।

ধোবাউড়া থানার ওসি আলী আহম্মদ মোল্লার বিদায় ও নবাগত ওসি আবুল কালাম আজাদের যোগদান

 ধোবাউড়া থানার ওসি আলী আহম্মদ মোল্লার বিদায় ও নবাগত ওসি আবুল কালাম আজাদের যোগদান




স্টাফ রিপোর্টার : আর.জে মিজানুর রহমান ইমন

 ময়মনসিংহ জেলার  ধোবাউড়ায় থানার ওসি আলী আহম্মদ মোল্লার বিদায় সংবর্ধনা, ও নবাগত অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদ এর যোগদান ধোবাউড়া থানা পুলিশের আয়োজনে, থানা চত্বরে ১৩ই আগষ্ট বৃহস্পতিবার  ১১টার সময় এ আয়োজন অনুষ্ঠিত হয় ।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সহকারী পুলিশ সুপার সার্কেল জনাব মোঃ খলিলুর রহমান বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন নবাগত ওসি আবুল কালাম আজাদ । তার বক্তব্যে তিনি,  ধোবাউড়া উপজেলা কে মাদক সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ ও বাল্যবিবাহ মুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দেন, এবং রাজনৈতিক ও সামাজিক সুশীল সমাজের সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন, ধোবাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ- সভাপতি ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা (কমান্ডার) মোজ্জামেল হোসেন, ধোবাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়তোষ বিশ্বাস (বাবুল) অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন হেলাল, ধোবাউড়া সরকারি আদর্শ কলেজ এর অধ্যাপক মোতালেব আকন্দ  ধোবাবাউড়া  প্রেসক্লাবের সভাপতি এডভোকেট হাবিবুর রহমান( হাবিব) উপজেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক জালাল উদ্দীন (সোহাগ) উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ইজ্জত আলী সাবেক মেম্বার, সদর  ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মনোয়ার হোসেন (রিপন) সদর ইউপি, চেয়ারম্যান এরশাদুল হক, সহ দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ফজলুল হক, গামারীতলা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খান, গোয়াতলা ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি সদরুল আমিন তালুকদার  (কালাম) বাঘবেড় ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি বজলুর রশিদ, ডেপুটি কমান্ডার মীর ইব্রাহীম

ধোবাউড়া উপজেলা কে মাদক, জুয়া, সন্ত্রাস জঙ্গি, বাল্যবিবাহ মুক্ত, করার লক্ষ্যে নবাগত ওসি আবুল কালাম আজাদ এর প্রতি প্রত্যাশা করেন । নবাগত ওসি আবুল কালাম আজাদ কে ফুলের তোরা দিয়ে বরণ করেন বিদায়ী ওসি আলী আহম্মদ মোল্লা, কে পুলিশ স্টাফদের পক্ষ থেকে  ফুলের তোরা দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে  বিদায় সংবর্ধনা দেন তাছাড়াও মহিলা পুলিশ সদস্যদের পক্ষ থেকে ওসি আলী আহম্মদ মোল্লা কে ক্রেস্ট প্রদান করাহয় ।

কাজিপুরের সোনামুখীতে ভাতিজাকে বিয়ে করতে অনশনে চাচি!

 কাজিপুরের সোনামুখীতে ভাতিজাকে বিয়ে করতে অনশনে চাচি!


মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃদেড় বছর পূর্বে পরকীয়া প্রেমে জরিয়ে পড়ে কলেজ ছাত্র মোঃ রনি। ছলে বলে চাচী ছন্দাকে তার প্রেমের ফাঁদে ফেলে এই ছাত্র। চাচা বাইরে কাঠ মিস্ত্রীর কাজ করার সুবাদে একদিন জোর করে ঠুকে পড়ে চাচীর ঘরে। সেদিন থেকেই নিয়মিত ধর্ষণ করতো রনি। সম্মানের ভয়ে চাচী ছন্দা কাউকে বিষয়টি জানান নি। এক পর্যায়ে তাকে বিয়ে করার প্রলোভনও দেখায় রনি কিন্তু বিয়ে করেনা সে। ঘটনাটি ঘটে সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার সোনামুখী পূর্ব পাড়ায়। রনি সোনামুখী পূর্বপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে। ওই ধর্ষক কাজিপুর সরকারি মনসুর আলী কলেজের ইতিহাস বিভাগের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। বিষয়টি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হলে গত বুধবার (১২ আগস্ট) বিকেলে ছেলের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন চালান ছন্দা।

এ বিষয়ে ধর্ষিতা ছন্দা জানান, “আমি ২০১৫ সালে বিয়ে করি সোনামুখি পূর্বপাড়া এরফান শেখের পুত্র মুকুল হোসেনকে। আমার ৩ বছরের একটি ছেলে সন্তানও আছে। রনি আমাকে দেড় বছর ধরে দুয়েকদিন পরপর জোর করে দৈহিক নির্যাতন চালাতো। বিষয়টি জানা জানির পরে আমি তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে বলতো আগের স্বামীকে ডিভোর্স না করলে বিয়ে করবো না। আমার শরীর নিয়ে শুধু খেলা করেছে তাই গত কাল (১১ আগস্ট) কোর্টে ডিভোর্স করেই আজ আমি তার বাড়িতে উঠেছি বিয়ের দাবিতে।”

ধর্ষিতা রনি জানান, “কোন কালেই ওই খারাব মেয়ের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ছিল না। আমি এখন ষড়যন্ত্রের স্বীকার।”

সিরাজগঞ্জ ইজিবাইক চালককে শ্বাসরোধ করে হত্যা

সিরাজগঞ্জ ইজিবাইক চালককে শ্বাসরোধ করে হত্যা


মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জে এক ইজিবাইক চালককে শ্বাসরোধে হত্যা করে ইজিবাইক নিয়ে পালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। নিহত ইজিবাইক চালক মোহাম্মদ আলী (২৮) সদর উপজেলার খোকশাবাড়ি ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের মো. সাইফুল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যায় খলিশাকুড়া থেকে অপরিচিত যাত্রী নিয়ে ছোনগাছা খালেক মোড় দিয়ে রওনা হলে পধিমধ্যে তাকে হত্যা করে রাস্তায় ফেলে রেখে ইজিবাইক নিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এলাকাবাসি বৃহস্পতিবার সকালে লাশ দেখে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

সদর থানা উপপরিদর্শক মো. জাফর আলী জানান, নিহত ব্যক্তিকে রাতের কোন এক সময় হত্যা করে ইজিবাইক নিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। লাশের গলায় ক্ষত রয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঐতিহাসিক পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে মানববন্ধন

ঐতিহাসিক পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে মানববন্ধন



রহমতউল্লাহ,বদলগাছী উপজেলা প্রতিনিধি নওগাঁ রাজশাহীঃনওগাঁ জেলায় প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয়টির নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলা পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহারে প্রতিষ্ঠার জন্যঐতিহাসিক পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন ছাত্র পরিষদ ও  এলাকাবাসী  সহ জুগে  মানববন্ধন করেন ।

একদিকে করোনা মহামারী দেশ ও বহির্বিশ্বের অবস্থান খুব নিম্নমানের এর মাঝে  নওগাঁ জেলায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য অনুমোদন দেন বাংলাদেশ সরকার।

নওগাঁ জেলার বিশ্ববিদ্যালয়টির নিয়ে চলছে নানা দ্বিমত।নওগাঁ জেলা বদলগাছী উপজেলা  পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার এলাকাবাসীর জোর দাবি প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয়টি পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার চত্বরে বাস্তবায়ন করানো হোক 

যেহেতু প্রাচীন আমল থেকেই পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার তথা সোমপুর বিহারেই বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। সেহেতু প্রাচীন ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতে এলাকাবাসীর দাবী যে পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার চত্বরে প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয়টি পুনর্নির্মাণ করা হোক।

এবং একই সাথে পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহারএর  মান পূর্ণ রাখার জন্য এ বিশ্ববিদ্যালয়টি নওগাঁ জেলার অন্য কোথাও না বাস্তবায়ন করে পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহারে প্রতিষ্টিত  করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে  অকুল আবেদন করছে এলাকাবাসী। 

পাহাড়পুরের  নিজের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে বহিঃবিশ্ব পাহাড়পুরের মানকে পূর্ণ রাখতে প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যালয়টি পাহাড়পুরে প্রতিষ্ঠা করা হোক।

মাগুরার শ্রীপুরে দারিয়াপুর ইউনিয়নের উদ্যোগে স্কুল ছাত্রীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরন

 মাগুরার শ্রীপুরে দারিয়াপুর ইউনিয়নের উদ্যোগে স্কুল ছাত্রীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরন


মো:রাসেল হোসেন শ্রীপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি:মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার দ্বারিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার স্কুল ছাত্রীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের এলজিএসপি প্রকল্প-৩ এর আওতায় ইউনিয়নের তিনটি বিদ্যালয়ের ১০ জন ছাত্রীকে এ বাইসাইকেল দেওয়া হয়।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মোঃ মাহবুবুর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ বাইসাইকেল বিতরণ করেন। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়াছিন কবীর, এলজিএসপি প্রকল্পের ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলেটেটর মোঃ শামছুজ্জোহা, শ্রীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মুসাফির নজরুল, দ্বারিয়াপুর ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন কানন প্রমুখ। এ সময় ইউনিয়নটির নির্বাচিত সদস্যবৃন্দ, বিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মোঃ মাহবুবুর রহমান জানান, মেয়েরা পাবলিক গাড়িতে যাতায়াতের কারণে অনেক সময় নানাভাবে হয়রানীর শিকার হয়। এজন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় জেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের স্কুল-কলেজ পড়ুয়া মেয়েদের মাঝে বাইসাইকেল দেওয়া হচ্ছে। এর ফলে স্কুল-কলেজগামী মেয়েরা স্বাধীনভাবে যাতায়াত করতে পারবে।

মিথ্যা ঘোষনা দিয়ে আমদানী করায় মোংলা বন্দর জেটিতে চার কন্টেইনার আফিন জব্দ

 মিথ্যা ঘোষনা দিয়ে আমদানী করায় মোংলা বন্দর জেটিতে চার কন্টেইনার আফিন জব্দ


 মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলাঃমোংলা বন্দর জেটিতে ঘোষনা বর্হিভূত আমদানি নিষিদ্ধ চার কন্টেইনার ভর্তি ৮০ মেঃ টন আফিন (পোস্তদানা) জব্দ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৩ আগষ্ট) দুপুরে এই আফিন জব্দ করে কাস্টম কর্তৃপক্ষ। মোংলা কাস্টম হাউজের কমিশনার মোঃ হোসেন আহম্মেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।  

আফিন জব্দের বিস্তারিত বিষয়ে তিনি বলেন, টেনিস বল আমদানির কথা থাকলেও আমদানিকারকরা আফিন আমদানি করছেন-এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে (আমদানি পণ্য নাম্বার-২০২০/৫৩৫) এই নিষিদ্ধ পণ্য জব্দ করেছেন তারা। মোংলা বন্দরের ২ নম্বর জেটিতে আমদানিকৃত ২০ ফিটের কন্টেইনার নাম্বার হলো-গজকট-৭৮১৮২৭১, গজকট-৮১১৭৭০০, গজকট-১১৭০৯৯৬ ও গজকট-৬৭৯৩৫১৭। 

মোংলা বন্দরের সহকারী ট্রাফিক ম্যানেজার মোঃ সোহাগ জানান, আমদানি নিষিদ্ধ এই পণ্য নিয়ে গত ১০ আগষ্ট সাইপ্রাস পতাকাবাহী জাহাজ ‘এম ভি স্যানজোর্জিএথ মোংলা বন্দরের জেটিতে আসে। জাহাজটিতে থাকা ৩১৭ টি কন্টেইনারের মধ্যে চারটি কন্টেইনারে আমদানি নিষিদ্ধ পণ্য আফিন (পোস্তদানা) আছে, এমন গোপন সংবাদে জাহাজটি বন্দর জেটিতে আসার আগেই আটক ওই পণ্যবাহী কন্টেইনার আটক করে কাস্টম কর্তৃপক্ষ। এরপরে ১০ আগষ্ট বন্দর জেটিতে আসার পরেই ২০ ফিটের গজকট-৭৮১৮২৭১, গজকট-৮১১৭৭০০, গজকট-১১৭০৯৯৬ ও গজকট-৬৭৯৩৫১৭ এই কন্টেইনার গুলোকে সংরক্ষিত করে রাখা হয়। আজ দুপুরে এসব কন্টেইনার খুলে আমদানি নিষিদ্ধ পণ্য জব্দ করে কাস্টম কর্তৃপক্ষ। 

মোংলা বন্দরে আসা জাহাজ ‘এম ভি স্যানজোর্জিওথ স্থানীয় শিপিং এজেন্ট মেসার্স ওশান ট্রেড লিমিটেডের খুলনাস্থ সহকারী ম্যানেজার মোঃ মেহেদি হাসান বলেন, ‘আমরা শুধু ওই জাহাজে থাকা কন্টেইনারগুলো আমদানি করেছি, তবে কন্টেইনারের মধ্যে কি পণ্য ছিল সেটা আমরা জানতাম নাথ। এটা ওই কন্টেনারে পণ্য আমদানিকারকরাই ভাল বলতে পারবেন বলে তিনি জানান। 

তবে পণ্য আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ঢাকার মেসার্স তাজ ট্রের্ডাস এর মালিক মোঃ সাব্বির হোসেন কাছে দাবি করেন, এই পণ্য তিনি আমদানি করেন নি, তিনি টেনিস বল আমদানির জন্য টাকা পাঠিয়েছেন। সাব্বির হোসেন আরও বলেন, এটা ভূলবশত মালয়েশিয়ার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স নিউসাইন কর্পোরেশন পাকিস্থানে যে পন্য যাওয়ার কথা সেটি ভুলবসত বাংলাদেশে পাঠিয়েছে। আমরা এবিষয়ে আমদানী সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে লিখিত ভাবে জানিয়েছি। এবং মালয়েশিয়ান সরবরাহকারী প্রতিষ্টানকে তাদের পন্য ফেরত নেয়ার জন্য চিঠি দিয়েছি। এ ভুল হওয়ার কারন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান টেনিস বল বিক্রির পাশাপাশি পোস্তদানাও বিক্রি করেন। 

বাগেরহাট চেম্বার অব কমার্সের নেতা মোঃ কবির হোসেন ও মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান,মোংলা বন্দরকে ধবংস করতে যেসব প্রতিষ্ঠান বা যেসব ব্যাক্তি জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে ভবিষ্যতে এ রকম ঘটনা আর ঘটবে না। 

এদিকে মোংলা কাস্টম হাউসের যুগ্ন কমিশনার মোঃ শামসুল আরেফিন খান বলেন,  জব্দকৃত পন্য কিভাবে এসেছে সব যাচায় বাচায় করে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর পক্ষ থেকে দেবহাটায় মাস্ক বিতরণ

মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর পক্ষ থেকে দেবহাটায় মাস্ক বিতরণ




আজহারুল ইসলাম সাদী, জেলা প্রতিনিধিঃমানবতার কল্যান ফাউন্ডেশন এর চেয়ারম্যান জি এম সৈকত এর পক্ষ হতে, সাতক্ষীরা দেবহাটা উপজেলা মানবতার কল্যান ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে মাক্স বিতারন করা হয়েছে। 

দেবহাটা উপজেলা ফাউন্ডেশনের সদস্য মোঃ হামিদুল ইসলাম উক্ত মাস্ক বিতরণ করার সময় জি এম সৈকত এর পক্ষ থেকে,  সকলকে সচেতন থাকতে পরামর্শ দেন।

হবিগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার,ঘর ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন- বিমান প্রতিমন্ত্রী

 হবিগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার,ঘর ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন- বিমান প্রতিমন্ত্রী




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃহবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলায় দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয়ের অধীন দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর (ডিডিএম) কর্তৃক গৃহিত গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টি আর) কর্মসূচীর আওতায় গৃহহীনদের জন্য দূর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্পের ১৮ জন উপকারভোগীদের মাঝে ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন বেসামরিক বিমাণ পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এড.মাহবুব আলী। 

বৃহস্পতিবার /১৩-/৮/২০২০ইং/ সকালে উপজেলা মিলনায়তন স্বচ্ছতায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাশনূভা নাশতারানের সভাপতিত্বে চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিমান প্রতিমন্ত্রী  বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ঘর দিলেন, সেই ঘরে পরিবার নিয়ে আপনারা বসবাস করবেন। সকলে বাসযোগ্য ঘর ও টয়লেট সুন্দর রাখবেন। 


এখন থেকে গৃহহীন বলে কেউ আর কথা বলবে না এই ঘরের মালিক এখন আপনারা উপজেলার ১১ টি ইউনিয়নে ১৮ জন কে প্রথম ধাপে প্রায় ৫৪ লক্ষ টাকা ব্যয়ে দূর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। একই সাথে সমাজসেবা অধিদপ্তরের ৫ হাজার ৫'শ ৪৬ জন কে এককালীন অনুদান ৫ হাজার টাকার চেক বিতরন করা হয়। 


উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি) আয়েশা আক্তারের সঞ্চাললনায় বক্তব্য রাখেন হবিগঞ্জের সমাজ সেবা উপ পরিচালক মোঃ হামিদুর,প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব মোছাব্বির হোসেন বেলাল রহমান,ভাইস চেয়ারম্যান মজিব উদ্দীন তালুকদার ওয়াসীম, মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ইকবাল হোসেন সমাজ সেবা সহকারী পরিচালক সোলায়মান মজুমদার।


প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাসুদুল ইসলাম,চেয়ারম্যান শহীন উদ্দীন চৌধুরী,সফিকুল ইসলাম, আপন মিয়া, ফারুখ পাঠান,আরিফুর রহমান,সুকোমল রায়,প্রেসক্লাবের সেক্রেটারি সাব্বির হাসান এবং সাংবাদিক লিটন পাঠান, উপকার ভোগীদের মাঝে বক্তব্য রাখেন চৌমুহনী ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামের শারিরীক প্রতিবন্ধী রুবেল মিয়া ও শাহজাহানপুর ইউনিয়নের সুরমা গ্রামের মাহফুজা বেগম।

করোনায় আক্রান্ত হলেন মধুপুরের ইউএনও আরিফা জহুরা

 করোনায় আক্রান্ত হলেন মধুপুরের ইউএনও আরিফা জহুরা




মো: আ: হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃটাঙ্গাইলের মধুপুরের উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা আরিফা জহুরা করোনায়  আক্রান্ত। সন্মুখ যোদ্দা হিসেবে কাজ করতে গিয়ে এবার নিজেই করোনায় আক্রান্ত হলেন। বুধবার (১২ আগস্ট) প্রাপ্ত নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদনে মধুপুরে তার সহ আরও ৪জনের(মোট পাঁচ জন) করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পজিটিভ এসেছে। এনিয়ে মধুপুর উপজেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৩৫ জন, সুস্হ হয়েছেন ৬৬জন, চিকিৎসারত আছেন ৬৮ জন। এ পর্যন্ত মধুপুরে  মৃত্যু হয়েছে এক জনের।


ইউএনও আরিফা জহুরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের আক্রান্তের তথ্য জানিয়েছেন। ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, হালকা ঠান্ডা আর ঘ্রাণশক্তি লোপ পাওয়া ছাড়া তাঁর এই মুহূর্তে তেমন কোনো সমস্যা নেই।বর্তমানে তিনি মধুপুরে সরকারি বাসভবনে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলেও উল্লেখ করেন।


জানা যায়,ইউএনও আরিফা জহুরা একজন সৎ,দ্বায়িত্বশীল এবং দূর্নীতির বিরুদ্ধে আপোষহীন কর্মকর্তা হিসেবে মধুপুর বাসীর আস্হা অর্জন করতে সক্ষম হন।বিভিন্ন দূর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে এবং সামাজিক উন্নয়নুলক কর্মকান্ডে অসামান্য অবদান রাখার কারণে তার নাম ছিলো মধুপুর বাসীর মুখে মুখে।পরবর্তীতে দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় পাঁচ মাস ধরে মাঠে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে।জনসচেতনতায় তার নেয়া প্রতিটি পদক্ষেপ ছিলো প্রশংসনীয়। লকডাউনে কর্মহীন মানুষের মধ্যে ত্রাণ সহ বিভিন্ন সহায়তা দেয়া,জনসমাগম এড়াতে অব্যাহত অভিযান চালানো,করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেওয়া রোগীদের নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা,আক্রান্ত ব্যক্তিদের খোঁজখবর নেওয়া, সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে তিনি মধুপুরে সদা তৎপর ছিলেন।


এছাড়াও,নমুনা সংগ্রহের জন্য মধুপুর উপজেলা পরিষদ একটি বিশেষায়িত গাড়ির ব্যবস্থা করেছেন। গাড়ির নাম দেওয়া হয়েছে ‘নমুনা সংগ্রহের গাড়ি’। ইউএনও আরিফা জহুরা এই গাড়িটির ব্যবস্থা করতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।সেই গাড়িতেই গত সোমবার তাঁর নমুনা নিয়ে যাওয়া হয়।তিনি নিজের সুস্থতা কামনায় মধুপুর বাসীর দোয়া কামনা করেন এবং সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান।

নাগরপুরে মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্র শুভ উদ্বোধন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

নাগরপুরে মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্র শুভ উদ্বোধন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত


হাসান সাদী নাগরপুর(টাংগাইল)প্রতিনিধি:টাংগাইলের নাগরপুরে নব প্রতিষ্ঠিত একটি আধুনিক ও বিজ্ঞান সম্মত হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান  মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্র আজ বৃহস্পতিবার, ১৩ আগষ্ট ২০২০ খ্রি. সকাল ১০.০০ সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে আনুষ্ঠানিকভাবে দোয়া মাহফিল, মাস্ক ও প্রতিরোধক হোমিও মেডিসিন আর্সেনিকাম এ্যালবাম ৩০ বিতরনের মধ্যে দিয়ে  ও ডা.এম.এ.মান্নানের গর্বিত পিতা জ্বনাব আহাম্মদ হোসেন এর সভাপতিত্বে শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠান  অনুষ্ঠিত হয়।


 অনুষ্ঠানে শুভ উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি হিসাবে ভিডিও কনফারেন্স বক্তব্য পেশ ও শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন-আন্তজার্তিক হোমিও সংগঠন, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ডের সুযোগ্য চেয়ারম্যান, হোমিও রত্ন জ্বনাব ডা.দিলীপ কুমার রায়।


 প্রধান বক্তা হিসাবে ভিডিও কনফারেন্স বক্তব্য পেশ করেন, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড এর রেজিস্ট্রার ডা.জাহাংগীর আলম।


 ভিডিও কনফারেন্স বাহোবো এর মেম্বার, সহযোগী অধ্যাপক ডা.কায়েম উদ্দীন এর পরিচালনায়  আরও বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন টাংগাইল হোমিও মেডিকেল  কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডা.সাহিদা আক্তার,বোর্ড সদস্য ডা.আশিস শংকর নিয়োগী।


অনুষ্ঠানে সরাসরি থেকে বিশেষ অতিখি হিসাবে বক্তব্য রাখেন-টাংগাইল হোমিও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা.মো.তোফাজ্জল হোসেন, সহকারীঅধ্যাপক (অব.)ডা.আনোয়ারুল হক,জননী হোমিও হলের পরিচালক ডা.মাসুদ তালুকদার, যদুনাথ মডেল স্কুল ও কলেজ এর সাবেক প্রধান শিক্ষক জ্বনাব মো.আহসান উদ্দীন মিয়া, মে.জে.মাহমুদুল হাসান ডিগ্রী কলেজ এর সহকারী অধ্যাপক জ্বনাব হাজী এম.এ.সালাম ও সহকারি শিক্ষক জ্বনাব শওকত আলী। 


দোয়া পরিচালনা করেন প্রথম দফায় দুয়াজানী কলেজ পাড়া জামে মসজিদের খতীব হযরত মাও.রফিকুল ইসলাম এবং দ্বিতীয় দফায় নাগরপুর বাজার জামে মসজিদের পেশ ইমাম হযরত মাও রফিকুল ইসলাম আমিনী।


আরো বক্তব্য পেশ করেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার ডা.কাওছার খান, প্রভাষক ডা.আজিজুর রহমান।


 পরে মুকতাদির হোমিও চিকিৎসা কেন্দ্রের এমডি ডা.এম.এ.মান্নান আজকের এই মহতী অনুষ্ঠানের বিষয়ে অনুভূতি বক্তব্য পেশ করেন।


 আরও উপস্হিতি ছিলেন-দুয়াজানী কলেজ পাড়া জামে মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাসুম বিল্লাহ,সহকারী অধ্যাপক শামীম আল মামুন সেলিম,  উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো.জাহিদ হাসান,ডেপুটি ম্যানেজার হাসান সাদী, মুক্তিযোদ্ধা ডা.সিদ্দিক মিয়া সহ নাগরপুরের গন্যমান্য নাগরিক বৃন্দ।


 অনুষ্ঠানের শুরুতে উপস্হিতিদের মাঝে মাস্ক বিতরন এবং অনুষ্ঠান শেষে উপস্হিতিদের মাঝে করোনা প্রতিরোধক মেডিসিন আর্সেনিক এ্যালবাম ৩০ বিতরন করা হয়।

বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক আল মামুনের মৃত্যুতে হুইপ ইকবালুর রহিমের শোক

বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক আল মামুনের মৃত্যুতে হুইপ ইকবালুর রহিমের শোক




মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক, দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য, দিনাজপুরের খেলোয়াড় তৈরির কারিগর, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সাধারন সদস্য ও ইনস্টিটিউটের আজীবন সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আল মামুন ১২ আগষ্ট বুধবার নিজ বাসভবনে বার্ধক্যজনিত কারনে সন্ধা ৭টায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি..........রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭২ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে সহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন, গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। তার ম"ত্যুতে দিনাজপুর সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক শোক বার্তায় মরহুম আল মামুনের রুহের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন এবং শোকাহত পরিবারের সকলকে ধৈর্য্য ধারনের আহবান জানান। মরুহমের নামাজে জানাযা ১৩ আগষ্ট বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় দিনাজপুর একাডেমী স্কুল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠি হবে। জানাযা শেষে ফরিদপুর গোরস্থানে দাফন কাজ সম্পন্ন করা হবে।

নবাবগঞ্জ থানা পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

নবাবগঞ্জ থানা পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন



মামুনুর রশিদ, দিনাজপুর প্রতিনিধি: জমিজমা সংক্রান্ত ঘটনায় দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ থানা পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারের সদস্যরা।


আজ সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে বলা হয়েছে,৩৪ শতাংশ জমি দখল এবং কেনাবেচার বিষয় নিয়ে নবাবগঞ্জ থানা পুলিশের এসআই মশিউর রহমান ও অন্য ৩ জন পুলিশ সদস্য অর্থের বিনিময়ে একটি পক্ষের পক্ষপাতিত করছে। 


তারা অভিযোগে বলেছেন,নবাবগঞ্জ থানার ভাদুরিয়া গ্রামের ২০৫ নং দাগের ৩৪ শতক জমি ছেড়ে দেয়ার জন্য বাধ্য করতে মেম্বার মো: হারুননুর রশিদ ও স্থানীয়  প্রভাবশালী মো: ইফতিখার রহমান,শহিদুল ইসলামের যোগসাজোশে থানায় ডেকে নিয়ে পুলিশ সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয় এবং সারাদিন থানায় বন্দী রেখে মানসিক নির্যাতন করেছে।


এসময় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নবাবগঞ্জের ভাদুরিয়া গ্রামের মো: ফরিদুল ইসলাম,উপস্থিত ছিলেন ছানারুল ইসলাম,শামসুল ইসলাম ও ছালেহা বেগম।

দৌলতপুরে ইউনিয়ন পরিষদে ফিরলেন দুই মহিলা সদস্য

দৌলতপুরে   ইউনিয়ন পরিষদে ফিরলেন  দুই মহিলা সদস্য


  কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃদৌলতপুর উপজেলার ১০ নম্বর দৌলতপুর সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের নামে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায়, দুই মেম্বারের সম্মানীভাতা চেয়ারম্যানের পকেটের শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করায় ১০ নং দৌলতপুর ইউনিয়নের ৯ জন ইউ পি সদস্য ও এক জন সংরক্ষীত মহিলা সদস্য  প্রতিবাদ সভা করেন । গত  সমবার সকাল ১১ টার সময় ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে উক্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে ,উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন, ইউ পি সদস্য আব্দুল মান্নান,সাইদুর রহমান,মুক্তার আলী,এনায়েত হোসেন, মুক্তার হোসেন, আব্দুল আজিজ,রশিদুল ইসলাম, হাববুর রহমান, নাসিরুল ইসলাম ও সংরক্ষীত মহিলা সদস্য ফজিলাতুন। পরে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দেওয়া   দুই মহিলা সদস্য,মেমজান , ছাপাতন নেছা  তাদের ভুল বুঝতে পেরে পুনরায় তারা পরিষদে উপস্থিত হয়ে সকল মেম্বার ও চেয়ারম্যান এর উপস্থিতিতে তারা গনমাধ্যমে জানান, আমদের কিছু ভুল বোঝাবুঝির কারনে বিভিন্ন তপ্তরে চেয়ারম্যান এর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়ে ছিলাম। বিষয়টি  বিভিন্ন পত্র পত্রিকায়  প্রকাশিত হয়। পরে আমরা বুঝতে পারি আমরা ভুল করেছি তাই ভুল বুঝতে পেরে আজ ১৩/৮/২০ তারিখ পরিষদে উপস্থিতি হয়ছি।  সকল ইউ পি সদস্য সহ চেয়ারম্যান এর উপস্থিতিতে ভুল স্বীকার করছি । তারা আর জানান আমরা আগের মত চলতে চাই। এ বিষয়ে চেয়ারম্যান মহিউল ইসলাম জানান, দুই জন মহিলা সদস্য তাদের ভুল বুঝতে পেরে আবার ফিরে এসেছে তাদের প্রতি আমার কোন অভিযোগ নাই আমি আমার ১২ জন সদস্য নিয়ে সঠিক ভাবে পরিষদ পরিচালনা করে আসছি সচ্ছতার সাথে বাকি দিন গুলো কাজ করবো।

নাটোরে ইউপি চেয়ারম্যানের বহিষ্কার ও আর্থিক ক্ষতি পূরণের দাবী পরিবারের

 নাটোরে ইউপি চেয়ারম্যানের  বহিষ্কার ও আর্থিক ক্ষতি পূরণের দাবী পরিবারের



রাজশাহী ব্যুরোঃবিভিন্ন ঋণ ও দাদন ব্যবসায় ফাঁসিয়ে দিয়ে কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে প্রবাসে পাড়ি দিতে বাধ্য করে ইউপি সদস্যের সম্মানীসহ নানা সুবিধা আত্মসাতের অভিযোগে সাময়িক বহিঃস্কৃত ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম রেজা মাস্টারের স্থায়ী বহিষ্কার ও আর্থিক ক্ষতি পূরণের দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে ওই ইউপি সদস্যের পরিবার ও ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসী। এ সময় প্রবাসে থাকা ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ স্কাইপিতে যোগ দিয়ে তার ক্ষতিপূরণ ও চেয়ারম্যানের দূর্ণীতির বিচার দাবী করে দেশে ফেরার আকুতি জানান। 

সকালে লালপুর উপজেলার কদিমচিলান ইউনিয়নের গোধরা এলাকায় প্রবাসে থাকা ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদের বাড়িতে সাংবাদিক সম্মেলনে তার স্ত্রী মাসুদা খাতুন লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২০১৬ সালে মেম্বার নির্বাচিত হওয়ার পর বিভিন্ন প্রকল্পের কাজের অর্থ যোগান দিতে চেয়ারম্যান সেলিম রেজা তার স্বামীকে দিয়ে অপর মেম্বার শফিকের কাছ থেকে দুই লাখ টাকা দাদন হিসাবে নিয়ে তা প্রকল্পের খরচ বাবদ আত্মসাত করেন। পরে সেই দাদন নেয়া টাকার সুদ সহ সাড়ে ৫ লক্ষ টাকা গ্রাম্য শালিশে স্টাম্পের মাধ্যমে চুক্তি করে চেকের মাধ্যমে পরিশোধ করিয়ে নেন ওই চেয়ারম্যানই। এতে নিঃস্ব আবুল কালাম সংসারের খরচ মেটাতে ২০১৭ সালের ১৭ অক্টোবর প্রবাসে পাড়ি দিতে বাধ্য হন। প্রবাসে থাকার বিষয়টি চেয়ারম্যান গোপন রেখে মেম্বারের সম্মানীসহ বিভিন্ন প্রকল্পে তাকে সভাপতি দেখিয়ে দূর্ণীতি করে সকল টাকা আত্মসাত করে আসছেন। গত মাসেও স্থানীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মানে প্রকল্প সভাপতি হিসাবে সে টাকা উত্তোলন করেছেন। এমন নানা অভিযোগে সে সেলিম রেজা সাময়িক বহিঃস্কার হয়েছেন। তবে আবুল কালামের পরিবারের দাবী সেলিম রেজাকে স্থায়ী বহিঃস্কার সকল দূর্ণীতির তদন্ত করে বিচারের আওতায় আনার। এছাড়া তাদের যে আর্থিক ক্ষতি হয়েছে তারও ক্ষতি পূরণ দাবী করেন তারা। 

এদিকে এ সময় স্কাইপিতে যোগ দিয়ে প্রবাসে থাকা আবুল কালাম আজাদ জানান, চেয়ারম্যানের কারণে তাকে দেশ ছাড়তে হয়েছে এছাড়া তার নামে কৃষি ব্যাংকের একাউন্টের চেক চেয়ারম্যানের কাছে থাকায় তা দিয়ে তিনি বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা তুলে আত্মসাত করেছেন । তাই তিনি দেশে আসার নিরাপত্তা ও আর্থিক ক্ষতিপূরণ দাবী করেন। 

এ সময় সাংবাদিক সম্মেলনে স্থানীয় উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ইসকান্দর মির্জা , সহ প্রচার সম্পাদক মীর আব্দুল মান্নান, আব্দুল কুদ্দুসসহ গণ্যমান্য ব্যক্তি ও স্থানীয়রা সাইনবোর্ড দেখিয়ে বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা লুটপাট , বয়স্ক, মাতৃকালীন ভাতা ও বিধবা ভাতায় আর্থিক লেনদেন ও নানা অনিয়ম এবং দূর্ণীতির অভিযোগ এনে তা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

নাটোর নলডাঙাই ৪৯টি বিষধর সাপ উদ্ধার, খামার মালিককে জরিমানা

 নাটোর নলডাঙাই ৪৯টি বিষধর সাপ উদ্ধার, খামার মালিককে জরিমানা

 


রাজশাহী ব্যুরোঃনাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলায় অবৈধভাবে গড়ে তোলা বিষধর সাপের খামার মালিক শাহাদাত হোসেনকে (৩৫) ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ওই খামার থেকে ৪৯টি বিষধর সাপ উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (১২ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার বৈদ্যবেলঘরিয়া চৌধুরীপাড়া গ্রামে গড়ে তোলা ওই সাপের খামারে অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন।  

খামার মালিক শাহাদাত হোসেন ওই গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে।ইউএনও আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, শাহাদাত হোসেন গত কয়েক মাস আগে শখের বশে ৪-৫টি সাপ নিয়ে একটি ছোট খামার গড়ে তোলেন। পরবর্তীতে বিষ উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের লক্ষ্য নিয়ে ওই খামারের পরিধি বৃদ্ধি করেন।


তবে সাপের খামার গড়ে তোলার ব্যাপারে তার কোনো বৈধ লাইসেন্স বা অনুমতি ছিল না। সাপ লালন-পালন বা চাষ করার কোনো প্রশিক্ষণও ছিলনা তার।

ফলে তার খামারটি এলাকাবাসীর জন্য ছিল হুমকি স্বরূপ।ইউএনও বলেন, তার খামারে পদ্মগোখরো ও গোখরো এই দুই প্রজাতির ৪৯টি সাপ ছিল। সবগুলো খুবই বিষধর। আর এসব বিষধর সাপের খামার গড়ে তোলার কারণে এলাকাবাসীও ছিলেন চরম আতঙ্কে। বিষয়টি জানার পর রাজশাহী বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগকে জানানো হয়।  

বিকেলে তাদের একটি অভিযানিক দল নলডাঙ্গায় আসেন। তাদের সঙ্গে নিয়ে ওই  সাপের খামারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় খামার থেকে ৪৯টি বিষধর সাপ ও বিপুল পরিমাণ ডিম উদ্ধার করা হয়। আর লাইসেন্স বিহীন অবৈধভাবে সাপের খামার গড়ে তোলার অপরাধে শাহাদাত হোসেনকে বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন, ২০১২ অনুযায়ী ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে খামারটি সিলগালা করা হয়। পরে উদ্ধারকৃত এসব সাপ ও সাপের ডিম বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তার নিকট হস্তান্তর করা হয়। এসময় নলডাঙ্গা থানা পুলিশ সহায়তা দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- রাজশাহী বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) জাহাঙ্গীর কবির, ফরেস্টার আশরাফুল ইসলাম, সাপ বিশেষজ্ঞ রোমন, নাটোর জেলা বন কর্মকর্তা সত্যনাথ সরকার, ওয়ার্ল্ড লাইফ জুনিয়র স্কাউট মিমনুর রহমান, বাংলাদেশ জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণ ফেডারেশনের (বিবিসিএফ) কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ফজলে রাব্বি প্রমুখ।

ময়মনসিংহে শিশুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ময়মনসিংহে শিশুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার



স্টাফ রিপোর্টার : আর.জে মিজানুর রহমান ইমন : ময়মনসিংহ সদর উপজেলার বনপলাশপুরে সিলিং ফ্যানে থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় স্বপ্নীল (৯) নামে এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে । 

 পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১১ই আগষ্ট মঙ্গলবার সন্ধায় বসতঘরে সিলিং ফ্যান থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় স্বপ্নীল নামে এক শিশুর লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা । পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন । তবে হত্যা কান্ড নিয়ে চারিদিকে নানা সমালোচনা চললেও কি কারণে এমন হয়েছে, এখনও আসল রহস্য বের হয়নি বলে জানানা তারা । 


স্থানীয়দের ধারণা নিহত শিশু স্বপ্নীলের বাবা বাবু ও মা সুরমীর বিচ্ছেদের পর, তার বাবা নতুন করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার কারণেই এমন হত্যাকান্ড ঘটনা ঘটে থাকতে পারে ।

কোটচাঁদপুরে ডিজিটাল কায়দায় স্বর্ণের দোকানে ৫ লক্ষ টাকার স্বর্ণ চুরি

কোটচাঁদপুরে ডিজিটাল  কায়দায় স্বর্ণের দোকানে  ৫ লক্ষ টাকার স্বর্ণ চুরি



খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে অন্তরা জুয়েলার্স নামের স্বর্ণের একটি দোকানে চুরির ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) সকালে দোকান খুলতে গিয়ে চুরির ঘটনা জানতে পারেন বলে দাবি করেছেন দোকান মালিক শ্রী দীপঙ্কর কুমার মজুমদার। ৫লক্ষ  টাকার স্বর্ণালংকার চুরি হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

দোকান মালিক বলেন, প্রতিদিনের মতো বুধবার রাত্রে দোকান তালাবদ্ধ করে বাসায় চলে যাই। এরপর সকালে দোকান খুলে দেখি দোকানের কোনও স্বর্ণালংকার নেই এবং দোকানের সাটারের মাঝখান উচু করা।


সাটারের মাঝখান উচু করে দোকানের ভিতরে ঢুকে চুরি করা হয় বলে ধারণা করা হয়। 


তিনি আরো জানান, আমার পাশের দোকান তুর্য ফোম প্যালেস সেই দোকানের সিসি টিভি ক্যামেরা ফুটেছে দেখা যায় ভোর ৬ টার দিকে দোকানের সামনে পলিঠিন দিয়ে আড়াল করে দোকানের সাটারের মাঝখান উচু করে ভেতরে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তরা, এবং স্বর্ণের দোকান লুট করে নিয়ে যায়।


এ বিষয়ে কোটচাঁদপুর মডেল অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুল আলমের কাছে বিষয়টি মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান এ বিষয়টি নিয়ে থানায় অভিযোগ এসেছে আমরা তদন্ত করে দেখছি।

চৌগাছায় স্পিড ব্রেকার রং করল সেচ্ছাসেবী সংগঠন আমরাই আগামী

 চৌগাছায় স্পিড ব্রেকার রং করল সেচ্ছাসেবী সংগঠন আমরাই আগামী


 চৌগাছা(যশোর) প্রতিনিধিঃ যশোরের চৌগাছা উপজেলায় সেচ্ছাসেবী সংগঠন  আমরাই আগামী এর উদ্দ্যোগে ব্যতিক্রমী  বিভিন্ন সামাজিক  কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে। সংগঠন টির উদ্দ্যোগে (চৌগাছা - মহেশপুর - পুড়োপাড়া) রাস্তায় বিদ্যমান বিভিন্ন ঝুকিপূর্ণ স্পিডব্রেকার রং করা হয়েছে। ১৩ আগস্ট ভোর ৪ঃ০০ টা থেকে কার্যক্রম শুরু হয়। এ দিন ৪ টি স্পিডব্রেকার রংকরন করা হয়।এই প্রোগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংগঠন এর সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদ আল সায়েম জানান,স্পিডব্রেকার এর কারণে চৌগাছায় দীর্ঘদিন ধরে দূর্ঘটনা ঘটছে। যেটা আমাদের নজরে আসে। তাই এ সমস্যা সমাধানে সংগঠন এর পক্ষ থেকে বিভিন্ন স্পট মার্ক করা হয়। যার অংশ হিসেবে এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। আমাদের সংগঠন আগামী দিনে চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, চৌগাছা সরকারি কলেজ সহ অন্যান্য স্পিডব্রেকারে রং  করা হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠন এর সভাপতি আজিমুর রহমান ,সহ সভাপতি আব্দুর রহমান বাধন,  ফাহাদ আল তামিম ও শতদ্রু হোসেন মাহির, সাধারণ সম্পাদক ডি এম আদর,  যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আলম ও জিসান আহমেদ ,সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদ আল সায়েম ,অর্থ সম্পাদক আব্দুল আল মামুন, উপ প্রচার সম্পাদক সাইফ আনান,ক্রিয়া সম্পাদক সজিব জোয়াদ্দার,সদস্য অমিত হাসান, সাকিবুর রহমান উৎস ,তামজিদ রহমান তামিম,বি এম শাকিল। এ সময় সংগঠন এর পক্ষ থেকে সার্বিক সহায়তার জন্য ধন্যবাদ প্রেরণ করা হয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইঞ্জিনিয়ার জনাব এনামুল হক, উপজেলা প্রধান প্রকৌশলী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয় এবং সমাজ সেবক হাসিবুর রহমান হাসিব কে।

বেনাপোল সীমান্তে ৪০০ বোতল ফেনসিডিল সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

 বেনাপোল সীমান্তে ৪০০ বোতল ফেনসিডিল সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক



তুহিন হোসেন, বেনাপোল প্রতিনিধিঃযশোরের বেনাপোল সীমান্ত থেকে পৃথক অভিযানে ৪০০ বোতল ফেনসিডিল সহ ওসমান গনি (২৩) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগষ্ট) ভোরে তাকে আটক করা হয়।

আটক ওসমান বেনাপোল পোর্ট থানার শিকড়ী গ্রামের সাবান হোসেনের ছেলে।

বেনাপোল ক্যাম্পের সুবেদার লালমিয়া জানান, গোপন সংবাদে জানতে পেরে, খড়িডাংগা ইটভাটা মোড় থেকে অভিযান চালিয়ে ১০০ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল সহ ওসমানকে আটক করা হয়। 

অপরদিকে, আরেক অভিযানে ভবারবের গ্রাম থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৩০০ বোতল ফেনসিডিল  উদ্ধার করা হয়।

আটক আসামির বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাকে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

বীরগঞ্জ পলাশবাড়ী ইউনিয়নের কীটনাশক স্যারের ভবন বেহাল দশা

বীরগঞ্জ পলাশবাড়ী ইউনিয়নের কীটনাশক স্যারের ভবন বেহাল দশা



খাদেমুল ইসলাম রাজ, বীরগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধিঃদিনাজপুর বীরগঞ্জ উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নের মদাতী বাজারের পূর্ব দিকে কৃষি কীটনাশক স্যার এর ভবনের বেহাল দশা।বহুদিন ধরে ব্যবহৃত ও সংস্কার না করায় এ অবস্থা।

সরেজমিন দেখা গেছে, জরাজীর্ণ বেশিরভাগ ভবনই জঙ্গলে পরিণত হয়েছে। দরজা জানালা খুলে নিয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে এসব ভবনে আর কেউ থাকে না। এজন্য অনেক জানালা, দরজাসহ অনেক জিনিসপত্র চুরি হয়ে গেছে।এবং এখানে এসে আরো দেখা যায় কিছু  খালি মাদকের প্যাকেট পরে আছে   এবং আর ভবনটি সারে ঘোড়া নামে পরিচিত, যানা মতে এখানে ৩৪ শতক মাটি আছে এর মধ্যে ভবন টি আছে।বর্তমানে এসব ভবন ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে গেছে। 

এলাকা বাসী দাবী করে ইউনিয়নের মধ্যে একটাই কীটনাশক স্যারের হিমাগার  আর সংস্কার করে পুনরায় চালুর দাবি জানিয়েছেন।

নওগাঁয় পাইলসের রোগীর পিওথলির অপারেশন, অবস্থা আশঙ্কাজনক

 নওগাঁয় পাইলসের রোগীর পিওথলির অপারেশন, অবস্থা আশঙ্কাজনক


মোঃ ফিরোজ হোসাইন,রাজশাহী ব্যুরোঃনওগাঁ শহরের প্রাইম ল্যাব অ্যান্ড জেনারেল হাসপাতালে আসমা খাতনু (২৫) নামের এক রোগীর পাইলসের অপারেশন করতে গিয়ে পিত্তথলির অপারেশান করেছেন চিকিৎসক। পিত্তথলিতে কোনো পাথর না পেয়ে প্রায় ৪ ঘণ্টা পর তার পাইলসের অপারেশন করা হয়। দুই দফা অপারেশন করায় এখন ওই রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। রোগী ওই ক্লিনিকে ভর্তি থাকলেও সঠিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না বলে পরিবারের অভিযোগ। বুধবার বিকেলে রোগীর বড় ভাই আতোয়ার রহমান নওগাঁ প্রেস ক্লাবের এসে সাংবাদিকদের কাছে এসব অভিযোগ করেন।

আতোয়ার রহমান জানান, বদলগাছী উপজেলার কাষ্টডোব গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে আছমা খাতুন পাইলস অপারেশনের জন্য গত মঙ্গলবার সকালে ওই ক্লিনিকে ভর্তি হন। ওই দিন দুপুর একটার দিকে নওগাঁ সদর হাসপাতালের সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডা. মুক্তার হোসেন এবং একই হাসপাতালের অ্যানেসথেসিয়া চিকিৎসক ও প্রাইম ল্যাব ক্লিনিকের স্বত্বাধিকারী ডা. ইসকেন্দার হোসেন রোগীর অপারেশন করেন। ওইদিন অপারেশন থিয়েটারে তিন জন রোগীর পিত্তথলির পাথর ও আসমা খাতুনের পাইলস অপারেশন করার কথা ছিল। কিন্তু ওই চিকিৎসক আছমা খাতুনের পিত্তথলির অপারেশন শুরু করেন। এ সময় আসমা বাঁধা দিতে গেলেও ওই দুই চিকিৎসক কোনো কথা না শুনে তাকে অজ্ঞান করে পেট কেটে দেখেন পিত্তথলিতে পাথর নাই। এরপর সেলাই করে ৬ তলার ১৫ নং কেবিনের বেডে রাখা হয় রোগীকে। ওই তিন রোগীর পিত্তথলির অপারেশন করার পর আছমা খাতুনের পাইলস অপারেশন করেন তারা। দুটি অপারেশন করায় বর্তমানে রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর ডা. মুক্তার হোসেন ও ডা. ইসকেন্দার ক্লিনিক থেকে সটকে পড়েন।

আতোয়ার রহমান বলেন, 'আমার বোন পাইলসের রোগী বলার পরও তারা জোর করে তার পিত্তথলির অপারেশন করে। মাত্র তিন ঘণ্টার ব্যবধানে তারা দ্বিতীয় দফায় পাইলসের অপারেশন করে তার। আমার বোনের শারীরিক অবস্থা এখন ভালো না। তাকে ওই ক্লিনিকের বেডে ফেলে রাখা হয়েছে। কিন্তু কোনো চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না। ক্লিনিকের লোকজনকে বললে তারা বলছেন, অজ্ঞান করার কারণে রোগীর অবস্থা এমন হয়। চিন্তার কিছু নেই।'


এ ব্যাপারে ডা. মুক্তার হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি। এদিকে ক্লিনিক মালিক ডা. এসকেন্দার হোসেন বলেন, 'রোগীর সঠিক নিয়মেই চিকিৎসা করা হয়েছে। তার সুচিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।'


এ বিষয়ে নওগাঁর সিভিল সার্জন ডাক্তার মোঃ আখতারুজ্জামান আলাল বলেন, তিনি ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

কেশবপুরে গ্যাস সিলিন্ডারের সরকারি দাম নির্ধারণ মানছে না ব্যাবসায়ীরা

কেশবপুরে গ্যাস সিলিন্ডারের সরকারি দাম নির্ধারণ মানছে না ব্যাবসায়ীরা


মোরশেদ আলম,যশোর ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ গ্যাস সিলিন্ডারের দাম সরকার  নির্ধারন করলেও মানছে না যশোর কেশবপুরের অধিকাংশ ব্যাবসায়ীগন। এলপি গ্যাস সিলিন্ডারের (১২.৫ কেজি) সরকারি বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে ৬০০ টাকা। কিন্তূ কেশবপুর হাট বাজারসহ বিভিন্ন বাজারগুলোতে সরকারের এই নির্দেশ কেউ মানছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এলপি গ্যাস ক্রয় করতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রচারে বা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যোমে শোনা যাচ্ছে এলপি গ্যাসের দাম সরকার নাকি ৬০০ টাকা নির্ধারণ করেছে কিন্তু বাজারে এসে দেখি আগের দামেই বিক্রয় হচ্ছে এলপি গ্যাস।

সরকারের নির্দেশ অমান্য করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সাধারন মানুষের কাছ থেকে গ্যাস সিলিন্ডার প্রতি ৮৫০ থেকে ৯০০ টাকা মূল্য নিচ্ছে।

এই দূর্যোগপূর্ণ দুঃসময়ে জনসাধারণের সাথে এমন প্রতারণা করা মোটেও সমীচিন নয়।

এছাড়াও, কেশবপুর উপজেলায় মোড়ে মোড়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বিক্রি হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার। অনুমোদন ছাড়াই বহু দোকানে এই ব্যবসা চলছে। রাস্তার ধারে যেনতেনভাবে ফেলে রাখা হচ্ছে সিলিন্ডার। এতে যে কোনো সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকলেও এ নিয়ে প্রশাসনের কোনো পদক্ষেপ নেই। এ ব্যাপারে মূল দায়িত্ব বিস্ফোরক পরিদপ্তরের হলেও তাদের কোনো তদারকি নেই।

কেশবপুর উপজেলা রাস্তায় দেখা যায় দুই তিনটি দোকান যেখানে ইলেকট্রনিক্স, উপহার সামগ্রী দোকান, শোরুমের সাথে চলছে গ্যাস সিলিন্ডারের ব্যবসা।শহরের বাইরেও সব জায়গায় সিলিন্ডার গ্যাস। ব্যাপক চাহিদা আর লাভের বিষয়টি মাথায় রেখে কেশবপুর প্রতিনিয়ত বাড়ছে এর ব্যবসা। সময়ের সঙ্গে ডিলার যেমন বেড়েছে, সেই সঙ্গে শহরের পানের দোকান, মুদির দোকান থেকে শুরু করে ছোট-বড় দোকানিরা খুলে বসেছে সিলিন্ডার ব্যবসা। সরেজমিনে দেখা যায়, নির্দিষ্ট গুদামে না রেখে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় খোলা স্থানে রাখা হয়েছে গ্যাস সিলিন্ডার। রাস্তার পাশেই চলছে বিক্রি। বর্তমানে এই ব্যবসা শহর গ্রামের অলিগলিতেও পৌঁছে গেছে। আবাসিক এলাকাতেও যত্রতত্র এলপি গ্যাস সিলিন্ডার মজুদ রাখা হচ্ছে। ফলে যে কোনো মুহূর্তে দুর্ঘটনার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এসব দোকানের বেশিরভাগ অনুমোদনহীন। যারা অনুমোদন নিয়েছে তারাও মানছে না নিয়মনীতি।কেশবপুর উপজেলার হাসানপুর, প্রতাপপুর, ভান্ডার খোলা, সাগর দাঁড়ি, চিংড়া, ত্রিমোহনী, পাজিয়া, মঙ্গল কোট বাজার ঘুরে দেখা গেছে গ্যাস সিলিন্ডারের বিক্রয় করতে গেলে অগ্নিনির্বাপক এর সিলিন্ডার নেই কোন দোকানে।

ফলে কেশবপুর উপজেলার প্রায় দোকানদার ও ক্রেতারা ঝুঁকির মধ্যে আছে।

জনসাধারনের হয়রানীর বিষয়টি বিবেচনা করে, ভুক্তা অধিকার আইনের পক্ষ থেকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন কেশবপুরের ভুক্তভোগী জনসাধারণ।

ঝিনাইদহ আরো ৪৭ জন করোনায় আক্রান্ত

 ঝিনাইদহ আরো ৪৭ জন করোনায় আক্রান্ত






সম্রাট হোসেন, শৈলকুপা উপজেলা (ঝিনাইদহ )প্রতিনিধিঃ ১৩_৮_২০২০ইং তারিখের  কোভিড-১৯ এর আপডেট তথ্য:

অফিসিয়াল ভাবে আমাদের কাছে কুষ্টিয়া_ল্যাব থেকে আরো ১২৪টি নমুনার ফলাফল এসেছে যার মধ্যে ৪৭জন নতুন আক্রান্ত হয়েছেন এবং নেগেটিভ ফলাফল ৭৭টি।ফলাফল সমুহ ৯/৮/২০২০ ইং তারিখের এবং ১০/৮/২০২০ ইং তারিখের সংগৃহীত বাকি নমুনার।

সংগৃহীত_মোট_নমুনার_সংখ্যা_৫০৮১মোট_ফলাফল_৪৬২৩+১২৪=৪৭৪৭মোট_আক্রান্তের_সংখ্যা_১২১৩+৪৭=১২৬০

নেগেটিভ_ফলাফল_৩৪৮৭

উপজেলা_ভিত্তিক_আক্রান্তের_মোট_সংখ্যা সদর_৫৮৬+৩৬=৬২২শৈলকূপা_১৩৭+৯=১৪৬

হরিনাকুন্ডু_৫৮+১=৫৯

কালীগন্জ_৩০৮

কোটচাদপুর_৮০

মহেশপুর_৪৪+১=৪৫

উপজেলা_ভিত্তিক_আক্রান্তদের_এলাকা

সদর_৩৬১

.চাকলাপাড়া

২.পার্ক পাড়া

৩.উপশহর পাড়া

৪.চাকলাপাড়া

৫.উপশহর পাড়া

৬.উপশহর পাড়া

৭.উপশহর পাড়া

৮.ব্যাপারী পাড়া

৯.ব্যাপারী পাড়া

১০.ফাষ্ট সিকিউরিটি ব্যাংক

১১.ভোক্তা অধিকার অফিস

১২.পুলিশ লাইন

১৩.ভুটিয়ার গাটি

১৪.ব্যাপারী পাড়া

১৫.জেলা কারাগার

১৬.জেলা কারাগার

১৭.কলাবাগান

১৮.পুলিশ লাইন

১৯.মদন মোহন পাড়া

২০.পি.বি.আই

২১.পি.বি.আই

২২.এন.এস.আই অফিস

২৩.অগ্রানী ব্যাংক

২৪.পাগলা কানাই

২৫.খাজুরা

২৬.খাজুরা

২৭.বাদপুকরিয়া

২৮.সোনালী পাড়া

২৯.ফেয়ার সার্ভিস সাউথ সাইড

৩০.ভুটিয়ার গাটি

৩১.মহিলা কলেজ পাড়া

৩২.সোনালী পাড়া

৩৩.সোনালী ব্যাংক

৩৪.গান্না বাজার 

৩৫.সোনালী পাড়া

৩৬.মহিলা কলেজ পাড়া


শৈলকূপা_৯

১.কবিরপুর

২. আবাইপুর

৩.কবিরপুর

৪.হাবিবপুর, কবিরপুর

৫.ধর্মপাড়া, কাচেরকোল-৩

৬.গলুল নগর, দিগনগর-৩

৭.উমেদপুর-১

৮.কবিরপুর

৯.গোবিন্দপুর, উমেদপুর-৩


হরিনাকুন্ডু_১

১.বাকচুয়া, ভায়না ইউপি


মহেশপুর_১

১.যুগী হুদা, ওয়ার্ড-৩


চিকিৎসক_সহ_আক্রান্ত_মোট_স্বাস্থ্য_কর্মীর_সংখ্যা_৬৪

চিকিৎসক_সহ_মোট_সুস্থ_স্বাস্থ্য_কর্মীর_সংখ্যা_৫০

মোট_সুস্থতার_সংখ্যা_৭৩২

উপজেলা_ভিত্তিক_সুস্থতার_সংখ্যা 

সদর_৩২০

শৈলকূপা_৮৩

হরিনাকুন্ড_২৪

কোটচাঁদপুর_৪৮

কালীগন্জ_২২৭

মহেশপুর_৩০


কোভিড_১৯_হাসপাতালে_ভর্তি_রোগীর_সংখ্যা_২৪


মোট_মৃত্যু_২০


সদর_১০

শৈলকূপা_৪

কালীগন্জ_৫

কোটচাঁদপুর_১

নওগাঁ-৬ উপ নির্বাচন আত্রাই রাণীনগর এলাকার জনসাধারণের নির্ভরতার প্রতীক -রেজাউল ইসলাম রেজু

নওগাঁ-৬ উপ নির্বাচন আত্রাই রাণীনগর এলাকার জনসাধারণের নির্ভরতার প্রতীক -রেজাউল ইসলাম রেজু




মোঃ ফিরোজ হোসাইন 

 রাজশাহী ব্যুরো


নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) সংসদীয় আসনে উপনির্বাচনে আত্রাই উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শেখ মোঃ রেজাউল ইসলাম রেজুতেই আস্থা ও নির্ভরতার প্রতীক হিসেবে দেখছেন তৃণমুল নেতা কর্মী ও এলাকার জনসাধারণ। দুই উপজেলা নিয়ে গঠিত এই সংসদীয় আসন নওগাঁ-৬। চলতি বছরের গত ২৭ শে জুলাই এই আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় নির্বাচিত সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের মৃত্যুর পর শূন্য  হয় এই আসন।


জনপদে বইতে শুরু করে নির্বাচনী হাওয়া। শুরু হয়েছে নানা সমীকরন। রাজনৈতিক মহলে চলছে চুল ছেঁড়া বিশ্লেষন। ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতা কর্মীদের দোয়া কামনাসহ বিভিন্ন প্রচার প্রচারনা দেখা গেলেও কেন্দ্রীয় নির্দেশনার অপেক্ষায় বিএনপি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা। বিএনপি এই উপনির্বাচনে আংশগ্রহন করবে কিনা এমন আশংকা থেকেই কোন রকম প্রচার প্রচারনায় মাঠে নেই বলে মনে করছেন অনেকেই। তবে বিএনপি নেতা কর্মীরা বলছে এটা তাদের একটি কৌশল মাত্র।


এরি মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী মরহুম ইসরাফিল আলমের সহধর্মিণী সুলতানা পারভীন বিউটি,  এ্যাডঃ ওমর ফারুক সুমন, মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী , আনোয়ার হোসেন, এ্যাডঃ জাহিদসহ প্রায় হাফ ডজন নেতা কর্মী এ আসনের হাট বাজার, গ্রাম মহল্লা, বন্যাকবলিত এলাকায় তাদের লোকবল ও মনোবল নিয়ে বিভিন্ন ভাবে জনগনের মাঝে নিজেকে উপস্থাপন করছেন মনোনয়ন প্রত্যশীরা বলে জানা গেছে।


অন্যদিকে দির্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি তে চলছে ভিন্ন সমীকরন। আস্থা রাখছে যোগ্য ও রাজ পথে পরিক্ষীত “রেজু”র নেতৃত্বে। এর আগে এই আসনে দল বিএনপি থেকে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা কেউ এই দুই উপজেলার একটি উপজেলার ভোটার বা স্থায়ী বাসিন্দা নয়। তাই এবার এই জনপদের মানুষ তাদের দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিজেদের সন্তান তথা তাদের নিজ উপজেলার ভোটার বা স্থায়ী বাসিন্দা বিএনপি নেতাকে এমপি হিসেবে নির্বাচিত করে এই আসন পুনুঃরুদ্ধার করতে চায়।


প্রচার প্রচারনায় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দেখা না মিললে ও দুর্যোগময় পরিস্থিতি তে দলীয় কর্মসুচি পালন এবং নির্দেশনা মেনে প্রতিটি দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে যেমন তার সহোযোগিতা অব্যহত রেখেছেন ঠিক তেমনি করোনা মহামারী কালে ও অসহায়দের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন আত্রাই বিএনপির সাবেক সভাপতি জনপ্রিয় নেতা শেখ রেজাউল ইসলাম রেজু।


এই দুই উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশা ও বিএনপি নেতা কর্মীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিগত সময়ের নেতার দ্বায়িত্বে থাকা নেতাদের দ্বায়িত্ব হীনতা, নেতা কর্মী অব্যমুল্যায়ন এবং আশা নিরাশার অজানা অনেক তথ্য।


বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া এবং ভাইসচেয়ারম্যান তারেক রহমানকে অযোগ্য এবং বিএনপিকে চাকর বাকরের দল অভিহিত করে দল ছেড়ে এলডিপিতে যোগদেন দির্ঘদিন ক্ষমতায় থাকা ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচিত প্রার্থী আলমগীর কবির। পরবর্তী সময় নাটকীয় ভাবে তার ছোট ভাই আসে রাজনীতির মাঠে। পর্দার আড়ালে থেকেই কলকাঠি নাড়তেন তিনি বলে মনে করেন আনেকেই। বড় ভাই দির্ঘদিন এই আসনে সংসদ সদস্য থাকায় মাঠ ধরতে বেগ পেতে হয়নি ছোটভাই আনোয়ার হোসেনকে। তবে নেতার পরিবর্তন হলেও তৃণমুলের নেতা কর্মীর ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি রাজনৈতিক ভাবে।


বড় ভাইয়ের (আলমগীর কবির) তার সময় নাম মাত্র বিভিন্ন সাংগঠনিক কমিটি হলেও পরবর্তী সময় ছোট ভাইয়ের সময় দলের ত্যাগী কর্মীদের সাথে ঘটেছে রাজনৈতিক ছলচাতুরি। কেন্দ্রীয় বিভিন্ন নেতার সাথে পরিচিতি থাকায়, কোন রকম নিয়ম নিতীর তোয়াক্কা না করেই নিজের পছন্দমত তৈরি করা হয়েছে পকেট কমিটি, বেড়েছে মাদকাসক্তদের প্রাধান্য এমনটিই বলেছেন অনেকেই। আর সেসব পকেট কমিটি কে অস্ত্র করে কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে পেশ করে নিজকে বড় নেতার কাতারে নিতে। কেন্দ্রীয় কমিটিতে সদস্য পদ লাভ করেন আনোয়ার হোসেন বুলু। এমন অনিয়মের কারনেই এই দুই উপজেলায় শুরু হয়েছে বিএনপির গ্রুপিং রাজনীতি।


জানা গেছে, এ পর্যন্ত কোন সময় দলীয় নির্দেশনা মেনে কাউন্সিল করে কোন সাংগঠনিক কমিটি করা হয়নি এই দুই উপজেলায়। এরি মাঝে এই জনপদের নেতাকর্মীদের ভাগ্যের নির্মম পরিহাস হয়ে ২০১৮ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারো দলছেড়ে যাওয়া। আলমগীর কবীরকে ধানের শীষ প্রতীকে মনোনয়ন প্রদান করে দল বিএনপি। নেতা কর্মী ক্ষুব্ধ হয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আলমগীর কবিরকে অবানঞ্চিত ঘোষনা করে নওগাঁ-৬ আসনে। নির্বাচন পরবর্তী প্রায় দু বছর পার হলেও দলীয় কোন কর্মসূচিতে উপস্থিত হননি তিনি খোঁজ খবর ও নেন না কারো। বার বার দল বিএনপির কেন্দ্রীয় এমন ভুল সিদ্ধান্তের ফলে সঠিক ত্যাগী নেতৃত্বের আস্থা হারাচ্ছে নেতাকর্মী।


তাই অহিংস নেতৃত্বের প্রতীক ও নওগাঁ-৬ এই জনপদের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে প্রতিনিধি হিসেব শেখ মোঃ রেজাউল ইসলামকে শান্তির দূত ও সফল সংগঠকের আসনে অসীন করতে চায় দলীয় নেতা কর্মীসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষ।