মানুষের এ এক অন্য রকম মিলন মেলা।। সন্দ্বীপ ছোঁয়াখালী ঘাট

মানুষের এ এক অন্য রকম মিলন মেলা।। সন্দ্বীপ ছোঁয়াখালী ঘাট



রিয়াজুল করিম রিজভী 
স্টাফ রিপোর্টার চট্টগ্রাম।

সন্দ্বীপ জুড়ে মানুষের এ এক অন্য রকম মিলন মেলা ছোঁয়া খালী ঘাটে।যদিও বছর খানেক আগে সন্দ্বীপে এমন দৃশ্য কোথায়ও দেখা যায়নি। কিন্তু সসম্প্রতি বসানো ছোঁয়া খালী ঘাটের ব্লগ গুলোর এই এলাকায় অন্যরকম এক মাত্রা যোগ করেছে। এর অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে মানুষ সন্দ্বীপ এর বিভিন্ন জায়গা থেকে পাড়ি জমায় সেখানে।

ব্লক বেড়িবাঁধ এলাকার মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, ওখানে এসব ব্লক বসানোর পর মানুষের আনাগোনা থাকলেও এখন ঈদ উপলক্ষে যেন এটি হার মানাচ্ছে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতকেও। তাদের কথা অনুসারে ওই জায়গায় প্রতিদিন বিকেলে ভিড় করে বিপুল সংখ্যক মানুষ।

সন্দ্বীপ এর যে কোন প্রান্ত থেকে ছুটে আসে মানুষ। নদীর তীরের এই অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে। কিছু দিন আগেও সেখানে কোন দোকান পাট ছিল না। মানুষের আনাগোনা বাড়ায় সেখানে একটি ছোট দোকান বসেছে যা মানুষের জন্য অনেক উপকারী।

তবে সচেতন মানুষরা বলছেন দেশের এই ক্রান্তিকালে সন্দ্বীপের মানুষের এমন চলাচল হতাশ জনক। দল বেঁধে লোকদের আড্ডা আবার কোন আকূল অন্ধকার নিয়ে আসে সে বিষয়ে শঙ্কার কথা জানাচ্ছেন তারা ।

ঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, কিছু যুবক সেখানে নদীতে লাফালাফি থেকে শুরু করে এক জন এক জনকে মজা করে নদীর তীরে কাঁদা নিয়ে মারামারি করছে । এসব ধারাবাহিক ভাবে চলতে থাকলে হয়তো পরবর্তীতে বিপদজনক কিছু ডেকে নিয়ে আসবে বলে ভয় স্থানীয়দের।

দূর দূরান্ত থেকে ছুটে আসা মানুষের মাঝে আবার মোটরসাইকেল নিয়ে চলে ওভারটেকিং।এক সাথে এক দুই নয় ১৫ থেকে ২০টা মোটরসাইকেলও দ্রুত গতিতে ছুটে চলে। মোটরসাইকেল আরোহীর জন্য সন্দ্বীপে এখন পর্যন্ত কোন আইন কার্যকর না হওয়ার ফলে অনেক অল্প বয়সের তরুণরা মোটরসাইকেল বাড়া নিয়ে ছুটে চলে ছোঁয়া খালী ঘাটের দৃশ্য দেখার উদ্দেশ্যে।

ঈদুল আযহার ছুটিতে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের ভীড়

ঈদুল আযহার ছুটিতে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের ভীড়





কুয়াকাটা প্রতিনিধিঃ
নাঈমুর রহমান

করোনা ভয়কে জয় করে পবিত্র ঈদুল আযহার ছুটিতে কুয়াকাটা সৈকতে দেশী বিদেশী পর্যটকদের ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। হাজারো পর্যটকদের ভীড়ে কুয়াকাটায় দীর্ঘদিন পর আবার উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। এই ঈদে কুয়াকাটার বিশেষ আর্কষণ সোমালিয়া থেকে আগত ৫ পর্যটক। করোনাকে ভয়কে জয় করে তারা কুয়াকাটা সৈকতে বেড়াতে এসেছে।

সৈকতে দেখা গেছে, আগত পর্যটকরা সমুদ্রের ঢেউয়ের তালে তাল মিলিয়ে নেচে গেয়ে সমুদ্রে গোসল, হৈ হুল্লোড় আর সৈকতে খেলাধুলা আনন্দের সীমা নেই পর্যটকদের মাঝে। সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের মনোলোভা দৃশ্য অবলোকন সহ সৈকতে বাইক নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর উম্মাদনা ভ্রমণের নতুন এক অনুভূতি জোগায়। কুয়াকাটার লেম্বুর চর, ঝাউবন, গঙ্গামতির লেক, কাউয়ার চর, মিশ্রিপাড়া বৌদ্ধ মন্দির, কুয়াকাটার কুয়া, শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহার, রাখাইনদের তাতঁ পল্লী, আলীপুর-মহিপুর মৎস্যবন্দরসহ দর্শনীয় স্পটগুলোতে পর্যটকদের আনাগোনা দেখা গেছে। রাতে সৈকতে জোসনার আলোয় সমুদ্রের ঢেউ আর ঢেউয়ের গর্জন আর এক অন্যরকম অনুভূতি মন ছুয়ে যায়। এছাড়া রাতে সৈকতের কোলঘেঁষে অবস্থিত মুখরোচক খাবার কাকড়া সহ বিভিন্ন প্রকার সমুদ্রের মাছ ফ্রাই খাওয়ার স্বাদই আলাদা। এমন মুখরোচক স্বাদ পর্যটকদের বার বার কুয়াকাটার কথা স্বরণ করিয়ে দেবে বলে মনে করেন ভ্রমণ বিলাসীরা।

আগত পর্যটকরা জানান, ঈদের আনন্দ উপভোগ করতেই তারা কুয়াকাটায় এসেছেন। নিজের দেশকে ঘুরে দেখার সূযোগ পেয়েছেন এই ঈদে। এখানকার সৌন্দর্য তাদের মুগদ্ধ করেছে। কুয়াকাটা এমন একটি সমুদ্র সৈকত যেখানে বার বার আসতে ইচ্ছে করবে অবসর পেলেই এমনটাই অভিমত পর্যটকদের।

পর্যটক রফিক আয়শা দম্পত্তি বলেন, কুয়াকাটার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, এখানকার মানুষজন তাদের খুবই ভালো লেগেছে। কুয়াকাটার প্রেমে পরে গেছেন তারা দুজন। তাই তারা বার বার কুয়াকাটা এসেছেন। রফিক আরো বলেন, বিশ্বের অন্যতম সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা। দিনে দিনে কুয়াকাটা পর্যটন নগরী হিসেবে পরিচিতি বাড়ছে। বাড়ছে এখানকার অবকাঠামোগত উন্নয়ন। কুয়াকাটার সাথে সারা দেশের সড়ক ও নদী পথের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হচ্ছে। বাড়ছে কুয়াকাটা পর্যটনের সক্ষমতা। কুয়াকাটাকে ঘিরে বর্তমান সরকার সূদুর প্রসারী উন্নয়ন পরিকল্পণা গ্রহণ করেছে। তবে এখানক
করোনা ভয়কে জয় করে পবিত্র ঈদুল আযহার ছুটিতে কুয়াকাটা সৈকতে দেশী বিদেশী পর্যটকদের ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। হাজারো পর্যটকদের ভীড়ে কুয়াকাটায় দীর্ঘদিন পর আবার উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। এই ঈদে কুয়াকাটার বিশেষ আর্কষণ সোমালিয়া থেকে আগত ৫ পর্যটক। করোনাকে ভয়কে জয় করে তারা কুয়াকাটা সৈকতে বেড়াতে এসেছে।

সৈকতে দেখা গেছে, আগত পর্যটকরা সমুদ্রের ঢেউয়ের তালে তাল মিলিয়ে নেচে গেয়ে সমুদ্রে গোসল, হৈ হুল্লোড় আর সৈকতে খেলাধুলা আনন্দের সীমা নেই পর্যটকদের মাঝে। সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের মনোলোভা দৃশ্য অবলোকন সহ সৈকতে বাইক নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর উম্মাদনা ভ্রমণের নতুন এক অনুভূতি জোগায়। কুয়াকাটার লেম্বুর চর, ঝাউবন, গঙ্গামতির লেক, কাউয়ার চর, মিশ্রিপাড়া বৌদ্ধ মন্দির, কুয়াকাটার কুয়া, শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহার, রাখাইনদের তাতঁ পল্লী, আলীপুর-মহিপুর মৎস্যবন্দরসহ দর্শনীয় স্পটগুলোতে পর্যটকদের আনাগোনা দেখা গেছে। রাতে সৈকতে জোসনার আলোয় সমুদ্রের ঢেউ আর ঢেউয়ের গর্জন আর এক অন্যরকম অনুভূতি মন ছুয়ে যায়। এছাড়া রাতে সৈকতের কোলঘেঁষে অবস্থিত মুখরোচক খাবার কাকড়া সহ বিভিন্ন প্রকার সমুদ্রের মাছ ফ্রাই খাওয়ার স্বাদই আলাদা। এমন মুখরোচক স্বাদ পর্যটকদের বার বার কুয়াকাটার কথা স্বরণ করিয়ে দেবে বলে মনে করেন ভ্রমণ বিলাসীরা।

আগত পর্যটকরা জানান, ঈদের আনন্দ উপভোগ করতেই তারা কুয়াকাটায় এসেছেন। নিজের দেশকে ঘুরে দেখার সূযোগ পেয়েছেন এই ঈদে। এখানকার সৌন্দর্য তাদের মুগদ্ধ করেছে। কুয়াকাটা এমন একটি সমুদ্র সৈকত যেখানে বার বার আসতে ইচ্ছে করবে অবসর পেলেই এমনটাই অভিমত পর্যটকদের।

পর্যটক রফিক আয়শা দম্পত্তি বলেন, কুয়াকাটার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, এখানকার মানুষজন তাদের খুবই ভালো লেগেছে। কুয়াকাটার প্রেমে পরে গেছেন তারা দুজন। তাই তারা বার বার কুয়াকাটা এসেছেন। রফিক আরো বলেন, বিশ্বের অন্যতম সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা। দিনে দিনে কুয়াকাটা পর্যটন নগরী হিসেবে পরিচিতি বাড়ছে। বাড়ছে এখানকার অবকাঠামোগত উন্নয়ন। কুয়াকাটার সাথে সারা দেশের সড়ক ও নদী পথের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হচ্ছে। বাড়ছে কুয়াকাটা পর্যটনের সক্ষমতা। কুয়াকাটাকে ঘিরে বর্তমান সরকার সূদুর প্রসারী উন্নয়ন পরিকল্পণা গ্রহণ করেছে। তবে এখানকার অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা এখনও অন্নুত থাকায় এখানকার দর্শনীয় স্পট গুলো দেখা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে পর্যটকরা। খুলনা থেকে বেড়াতে আসা পর্যটক মিলন মিত্র বলেন, কুয়াকাটার হোটেলগুলো মোটামুটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে। আমি দুই বছর পূর্বে একবার এসেছিলাম তখনকার চেয়ে এখনকার পরিবেশ সন্তোষজনক।

এবছর পর্যটন মৌসুম শুরু হওয়ার পর থেকে বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটক শুন্য হয়ে পরেছিলো। গত ১ জুলাই পর্যটনমুখী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আনুষ্টানিকভাবে খুলে দেয়ার পর এই ঈদে পর্যটকদের ভীড় বাড়তে শুরু করছে। ঈদের প্রথম দিন থেকেই কুয়াকাটায় শত শত পর্যটক আসতে থাকে। আবাসিক হোটেলগুলো কম বেশি বুকিং হয়েছে। তবে আবাসিক হোটেল সিকদার সিসোর্ট এন্ড ভিলাস, কুয়াকাটা গ্রান্ড, হোটেল গ্রেভার ইন, হোটেল সী ক্রাউন ইনসহ প্রথম শ্রেনীর হোটেলগুলোতে তেমন কোন ভীড় দেখা যায়নি।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এম এ মোতালেব শরীফ জানান, করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে দীর্ঘ কয়েক মাস পর্যটনমুখী ব্যবসা বন্ধ থাকার পর এই প্রথম উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পর্যটক এসেছে। অনেক পর্যটকরাই অগ্রিম হোটেল বুকিং দিচ্ছেন। এভাবে পর্যটকরা আসা অব্যাহত থাকলে আমাদের মন্দা কেটে যাবে। তিনি আরও বলেন, কুয়াকাটার প্রত্যকটি হোটেল স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে। তাই এখানে করোনা ভয় কম।

ইঞ্জিনিয়ার চিত্তরঞ্জন দাশের মৃত্যুতে মেজর (অব:) সুরঞ্জন দাশের শোক প্রকাশ

ইঞ্জিনিয়ার চিত্তরঞ্জন দাশের মৃত্যুতে মেজর (অব:) সুরঞ্জন দাশের শোক প্রকাশ




মোঃ নাসির চৌধুরী তানভীরঃ   নবীগঞ্জের কৃতি সন্তান, বিশিষ্ট সমাজসেবক, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের (পি ডাব্লিউ ডি) অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (অতিরিক্ত সচিব) ইঞ্জিনিয়ার চিত্তরঞ্জন দাশ (৭০) গতকাল রাত ১০.৪৯ মিনিটে রাজধানীর আনোয়ার খান হাসপাতালে ইহলোক ত্যাগ করে পরলোক গমন করেছেন। “দিব্যান্ লোকান্ স্বঃ গুচ্ছতু।” মৃত্যু কালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, এক কন্যা ও অসংখ্য গুণাগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে বিশিষ্ট সমাজসেবক, কীর্তিনারায়ণ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব:) সুরঞ্জন দাশ গভীর শোক এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। এক শোক বার্তায় তিনি উল্লেখ করেন যে, “ইঞ্জিনিয়ার চিত্তরঞ্জন দাশের মতো মেধাবী ও সত্য অফিসার দেশ ও জাতির গর্ব। তাঁর আদর্শ ভবিষ্যত প্রজন্মকে পথ দেখাবে।” ইঞ্জিনিয়ার চিত্তরঞ্জন দাশের মৃত্যুর খবর জানাশোনা হলে নবীগঞ্জ উপজেলা জোরে শোকের ছায়া নেমে আসে। তাঁর মৃত্যুতে আরো শোক প্রকাশ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্য সচিব ও বাংলাদেশ বেসরকারি গণগ্রন্থাগার পরিষদের বিভাগীয় সমন্বয়ক রত্নদীপ দাস রাজু ।

শিবগঞ্জের বিনোদপুরে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের ঠেকাতে বিভিন্ন মোড়ে পুলিশের অভিযান

শিবগঞ্জের বিনোদপুরে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের ঠেকাতে বিভিন্ন মোড়ে পুলিশের অভিযান



শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নে বহিরাগত মাদকসেবীদের ও মাদক ব্যবসায়ীদের ঠেকাতে মোড়ে মোড়ে চলছে পুলিশের চিরুনি অভিযান ।

গত কাল রবিবার বিকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার, এএইচএম আব্দুর রকিব স্যারের নির্দেশনায় শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুল আলম শাহ্ নেতৃত্বে এসআই মোঃ সাজ্জাদ হোসেন, এসআই শাহারিয়ার হোসেন, এসআই নুরুল ইসলাম,এএসআই মোঃ আব্দুল মালেক এএসআই হাবিব ও সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে শিবগঞ্জের বিনোদপুর ইউনিয়নের টাপ্পু মোড়ে এবং টাপ্পু
জিলাপির মোড়,খাসেরহাট বাজার ও কলেজ মোড়ে এলাকায় বহিরাগত মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে চিরুনি অভিযান চালান হয়।

পুলিশ জনতা জনতাই পুলিশ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে শিবগঞ্জে মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ ও চোরাচালানসহ সকল প্রকার অপরাধ দমনের উদ্দেশ্য মাঠে নেমেছে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ বলে জানিয়েছেন শিবগঞ্জ থানার ওসি শামসুল অালম শাহ।
তিনি আরও বলেন বাজারের চায়ের দোকানে ও বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে মাদকসেবীদের ঠেকাতে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা তুলে ধরার পাশাপাশি চায়ের দোকানে আড্ডাবাজি করতে নিষেধ করা হয়।

সিরাজগঞ্জ পাঁচঠাকুরী ও সিমলায় ৩০ বান্ডিল ঢেউ টিন বিতরণ

সিরাজগঞ্জ পাঁচঠাকুরী ও সিমলায়  ৩০ বান্ডিল ঢেউ টিন বিতরণ




মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধি: শনিবার বিকেলে যমুনা নদীর কড়াল গ্রাসে বসত ভিটা হারা ৩০ টি পরিবারের মাঝে মাথা গোজার ঠায় ঢেউ টিন বিতরণ করলেন ডিগ্রি পাড়া গ্রামের দান শীল  বিএসসি ইঞ্চিনিয়ার সেলিম বাদশা। পাঁচঠাকুরী সিমলা এলাকার শতাধিক মানুষ যখন খোলা আকাশ ও আত্বীয় স্বজনদের বাড়িতে মানবেতর জীবন যাপন করছিল। ওই সকল অসহায় মানুষের কষ্টের কথা ভেবে মানবতার হাত বাড়িয়ে ৩০ টি পরিবারকে আশ্রয়স্থল তৈরী করার জন্য প্রতি পরিবারকে এক বান্ডিল করে ঢেউ টিন বিতরণ করেন। এ সময় ছোনগাছা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ. বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সেলিম রেজা.৮ নং ওয়ার্ডের সভাপতি ও ইউপি সদস্য জহুরুল ইসলাম.৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য তারিকুল ইসলাম.গাজী লুৎফর রহমান.কবি সাইদুল ইসলাম কবীর. আ.মমিন.রাজু আহমেদ.আ. সামাদ ভুইয়া.রফিকুল ইসলাম ও ফরিদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
.
.

সিরাজগঞ্জ একডালাতে অন্য রকম গণিত উৎসব

সিরাজগঞ্জ একডালাতে অন্য রকম গণিত উৎসব
 



মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধি: আব্দুল মান্নানঃ শোকাবহ আগষ্টের (২ আগষ্ট) শুরুতে ক্ষুদে গণিতবিদদের পদচারণায় মুখরিত হয় সিরাজগঞ্জের একডালা (বাহির) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। ‘If you want to know the earth, start solving the math’ – স্লোগান কে সামনে রেখে ‘ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অব একডালা’ আয়োজন করে ‘১ম একডালা গণিত উৎসব – ২০২০’।
উৎসবে অংশগ্রহণ কারী সকলের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে, তাদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করে উৎসবে অংশ নেয়ার অনুমতি প্রদান ডা. রুবেল হোসাইনের নেতৃত্বাধীন মেডিকেল টিম। তিন টি ক্যটাগরিতে শুরু হয় গণিতের লড়াই।
গান্ধাইল রতনকান্দি ইউনিয়ন আলী আহমেদ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শ্রী সাধন কুমার রায়ের সভাপতিত্বে শুরু হয় উৎসব পরবর্তী পুরস্কার বিতরণী ও সংবর্ধনা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আমিনুল ইসলাম আকাশ ও রাসেল রানা।
অনুষ্টানের সূচনালগ্নে উৎসবের আহবায়ক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আব্দুল মান্নান আয়োজকদের সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরে বলেন, ‘ গণিতকে ভালবেসেই আমাদের আজকের এ আয়োজন। আমরা বিশ্বাস করি গণিত উৎসবের মাধ্যমেই শিক্ষার্থীদের গণিতভীতি দূর হবে’। উৎসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ডেসকো লিমিটেডের সহকারী প্রকৌশলী ও সাবেক বুয়েটিয়ান আরিফুল ইসলাম সামগ্রিক বিষয়ের উপর একটি প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন।
উৎসবের উপদেষ্টা স্ট্রাকচারাল ডিজাইন কনসাল্টেন্টের সিইও ইমরুল মহশিন বলেন, ‘ তুমি যদি পথ ভুলে যাও, তাহলে গণিত করা শুরু করে দাও। পৃথিবীর যে কোনো কাজ করতে গেলে গণিতকে জানতে হবে। আমি বিশ্বাস করি আমার সামনেই বসে আসে আগামী দিনের পীথাগোরাস, হিপ্পাসাস, চমক হাসানেরা।’
সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য গোলাম রব্বানী তালুকলার আয়োজকদের এ আয়োজনকে স্বাধুবাদ জানান ও উৎসাহ প্রদান করেন।
পুরস্কার বিতরণী ও মধ্যাহ্ন ভোজের মাধ্যমে সমাপ্তি ঘটে গণিতের এ মহারনণের।

সিরাজগঞ্জে বাল্যবিবাহ বন্ধ করেন সদর এসিল্যান্ড

সিরাজগঞ্জে বাল্যবিবাহ বন্ধ করেন সদর এসিল্যান্ড



মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃসিরাজগঞ্জ সদর উপোজেলায় বাল্যবিবাহ বন্ধ করেন সহকারী কমিশনার( ভূমি)। অদ্য ০৩/০৮/২০২০ গোপন সূত্রের ভিত্তিতে চর ছোনগাছা এলাকায় বাল্যবিবাহ হচ্ছে সংবাদ পেয়ে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়ন এর চর ছোনগাছা নামক এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ। অভিযান পরিচালনায় সহযোগিতা করেন পৌর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা এবং আনসার বাহিনীর সদস্যগণ। 
এসময় মোবাইল কোর্ট পরচালনা করে বাল্যবিবাহের দায়ে কনের বাবা মোঃ বেলাল হোসেনকে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর আওতায় ১০,০০০/-(দশ হাজার টাকা) অর্থদণ্ড করা হয়। 
এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ জানান, বাল্যবিবাহের ব্যাপারে কোনো প্রকার ছাড় দেয়ার সুযোগ নেই। ভবিষ্যতে এ ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি বলেন।

বিষ্ণুপুর ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত

বিষ্ণুপুর ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত




মোঃ কাউসার আলী,চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: মুজিব জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের উদয়ন সংঘ কর্তৃক আয়োজিত মাস ব্যাপি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয় আজ (৩ আগস্ট)বিকাল ৫ টায়।উক্ত ফাইনাল খেলায় দিপু টেলিকম ৩-২ গোলে মামনি গার্মেন্টস কে পরাজিত করে।আর এ ফাইনাল খেলায় সেরা খেলোয়াড় হন দিপু টেলিকমের আশিক এবং সর্বোচ্চ গোলদাতা হন মামনি গার্মেন্টসের বিপুল।এই ফাইনাল খেলায় উপস্থিত ছিলেন জুড়ানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মোঃসোহরাব হোসেন,দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব মোঃরফিকুল আলম রান্টু,দামুড়হুদা উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব মোঃসাইদুর রহমান সন্টু,বিষ্ণুপুর ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব মোঃমতিয়ার রহমান মন্টু,উদয়ন সংঘের সভাপতি জনাব মোঃকাউসার আলী লাল্টু,সেক্রেটারি শারাফায়েত হোসেন বাবু,সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর রহমান তরুন সহ শিমুল,সাদায়েত,জাহিদ, শিপন,রতন,সাব্বির এবং এই অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করেন উদয়ন সংঘের উপদেষ্টা জনাব মোঃআব্দুল মান্নান।
উল্লেখ্য যে,উদয়ন সংঘ বিভিন্ন ধরণের সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজ করে আসছে বহুদিন ধরে।তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো দুস্থ অসহায় লোকদের সাহায্য,শীবতস্ত্র বিতরণ,বৃক্ষরোপন,মেধাবী ছাত্রদের বিভিন্ন ধরণের সাহায্য সহযোগিতা করা।
বক্তব্যে উদয়ন সংঘের সভাপতি বলেন যে,উদয়ন সংঘ ভাল কাজে সবসময় আছে এবং থাকবে।

নাগরপুরে বন্যার্তের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ

নাগরপুরে  বন্যার্তের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ




হাসান সাদী,নাগরপুর(টাঙ্গাইল)  প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের নাগরপুর  উপজেলায় অসহায়, দরিদ্র ও বন্যার্ত মানুষের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার (০৩ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার গয়হাটা ও সলিমাবাদ ইউনিয়নের গয়হাটা,বিনানুর,চরসলিমাবাদ ও যমুনায় ভেঙে যাওয়া  ১৫০ পরিবারের  মাঝে  কোরবানির মাংস বিতরণ করা হয়েছে।
ঈদের তৃতীয় দিনে গরু কোরবানি করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে গয়হাটা বড় বাড়ীর মরহুম তায়েবুর রহমানের  ছোট সন্তান আমেরিকা প্রবাসী আতিকুর রহমান আলোক।


আতিকুর রহমান আলোকের পক্ষে মাংস  বিতরণে সহযোগিতা  করেন তার (বড় ভাই) মুজিবুর রহমান বিপ্লব,(ভাগিনা) উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মীর মুশফিক হোসেন (শৈবাল) এবং যুবলীগ নেতা জাকির তালুকদার প্রমুখ।
বন্যার্তরা মাংস পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। ভবিষ্যতে দুযোর্গপূর্ন এলাকাগুলোতে আরও বেশি পরিমাণ মাংসের বরাদ্দ দেওয়ার কথা জানান এলাকাবাসীরা।

আত্রাইয়ে বন্যার পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

আত্রাইয়ে বন্যার পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু






মোঃ ফিরোজ হোসাইন,রাজশাহী ব্যুরোঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে পানিতে ডুবে নাফিস হোসেন (১২) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। নিহত নাফিস হোসেন উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের গন্ডগোহালী গ্রামের লিটন আব্বাসীর ছেলে।

আজ সোমবার বেলা ১২টার দিকে সহপাঠিদের সাথে বাড়ির পাশে বন্যার জলাবদ্ধ পানিতে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়।
 
পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার বেলা ১২টার দিকে নিহত নাছিম তার সহপাঠিদের সাথে বাড়ির পাশে বন্যার জলাবদ্ধ পানিতে গোসল করতে নামে। গোসলের এক পর্যায়ে সে পানির নিচে তলিয়ে যায়। অনেক খুঁজাখুঁজির পর অবশেষে তাকে পানিতে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

এ বিষয়ে আত্রাই থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোসলেম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পানিতে ডুবে শিশু নাছিমের মৃত্যুর সংবাদ আমি শুনেছি। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। শিশুটির অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের মাতম চলছে।

র‌্যাবের অভিযানে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক ১

র‌্যাবের অভিযানে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক ১




কুষ্টিয়া প্রতিনিধি,মোঃ চঞ্চল হোসেন।। র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি চৌকষ আভিযানিক দল আজ সকাল ১১.৩০ ঘটিকার সময় ‘‘কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানাধীন আল্লারদর্গা আনোয়ারা বিশ্বাস মা ও শিশু হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর সামনে পাঁকা রাস্তার উপর’’ একটি মাদক অভিযান পরিচালনা করে।
উক্ত অভিযানে ইয়াবা ট্যাবলেট-১০০ পিচ,মোটরসাইকেলসহ দৌলতপুর থানার খারিজাথাক গ্রামের মালেকের ছেলে মোহাম্মদ আলী কে আটক করে র‌্যাব-১২। পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আলামতসহ ধৃত আটককৃতের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানায় একটি মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং তাকে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানায় সোপর্দ করা করেন।

আশাশুনিতে পুলিশী অভিযানে ৭ আসামী আটক

আশাশুনিতে পুলিশী অভিযানে ৭ আসামী আটক




আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা   প্রতিনিধি: 

আশাশুনিতে পুলিশী অভিযানে ৭ আসামীকে আটক করা হয়েছে। থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ গোলাম কবির এর নেতৃত্বে সোমবার সকালে এসআই জাহাঙ্গীর হোসেন সঙ্গীয় 

ফোর্স এর সহায়তায় নিয়মিত মামলা-১(৮)২০২০, ২(৮)২০২০ এবং 

৩(৮)২০২০ এর আসামী উপজেলার কল্যানপুর গ্রামের সৈয়দ আলী সানার 

ছেলে মনিরুজ্জামান মনি (২২), মধ্যম বড়দল গ্রামের মৃত আক্কাজ সরদারের ছেলে কামরুল সরদার (৪২), রবিউল মোল্যার ছেলে সাইফুল মোল্যা (২০), মৃত কদু গাজীর ছেলে খানজি গাজী (৫২) ও খানজি গাজীর ছেলে জাফর আলী (২৪) কে তাদের নিজ নিজ এলাকা হতে আটক করেন। অপরদিকে, এএসআই নাজিম উদ্দীন সঙ্গীয় ফোর্স এর সহায়তায় সিআর-১০০/১৬ (ওয়ারেন্ট) মূলে উপজেলার রাজাপুর গ্রামের মৃত নুর হোসেন এর ছেলে সাহেব আলীকে তার নিজ বাড়ী হতে আটক করেন এবং এএসআই মোকাদ্দেস হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স এর সহায়তায় ড়সিআর-১১৩/১৯ (ওয়ারেন্ট) মূলে উপজেলার কচুয়া গ্রামের মেসকের সানার ছেলে আকুল সানাকে তার নিজ বাড়ী হতে আটক করেন। আটককৃত আসামীদেরকে বিচারার্থে মোমবার দুপুরে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

আশাশুনিতে এসিল্যান্ড'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ

আশাশুনিতে এসিল্যান্ড'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ




আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা প্রতিনিধি: আশাশুনিতে এসিল্যান্ড'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধসহ মেয়ের বাবাকে জরিমানা আদায় করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহীন সুলতানা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে দরগাহপুর ইউনিয়নের দরগাহপুর গ্রামের হেলাল গাজীর বাড়িতে যেয়ে নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া ফাতেমা খাতুনকে দুই মাস আগে বিয়ের কাবিননামা দেখায় মেয়ের বাবা। বাল্যবিবাহ দেওয়ার অপরাধে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর ৪ ধারায় মেয়ের বাবাকে ২০০০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া মেয়ের বয়স ১৮ বছর পূর্তি না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে শ্বশুর বাড়িতে না পাঠানোর জন্য লিখিত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন। এসময় এএসআই মোকাদ্দেস হোসেন সহ সঙ্গীয় ফোর্স, ভূমি অফিসের নাজির সুগত অধিকারী ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।

আশাশুনির প্রতাপনগরে নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে উত্যক্ত করায় আটক-১

আশাশুনির প্রতাপনগরে নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে উত্যক্ত করায় আটক-১



আহসান উল্লাহ বাবলু উপজেলা   প্রতিনিধি: 

আশাশুনির প্রতাপনগর ইউনিয়নের কল্যাণপুর গ্রামে এক নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত ও জোরপূর্বক দুই মুখ চুমু খাওয়ায় এক আসামীকে আটক করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান, পিপিএম(বার) মহোদয়ের দিক নির্দেশনায়, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার, দেবহাটা সার্কেল মোঃ শেখ ইয়াছিন আলীর তত্ত্বাবধানে আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ গোলাম কবির এর নেতৃত্বে আশাশুনি থানা এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা, গ্রেফতারী পরোয়ানা তামিল ও বিশেষ অভিযান পরিচালনাকালে এসআই মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স এর সহায়তায় কল্যাণপুর গ্রামের সৈয়দ আলী সানার পুত্র মোঃ মনিরুজ্জামানকে আটক করে। এই সংক্রান্তে আশাশুনি থানায় নিয়মিত মামলা-১(৮)২০২০, রুজু করে সোমবার দুপুরে বিচারার্থে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

নওগাঁর আত্রাইয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রবিউল ইসলাম চঞ্চলের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা

নওগাঁর আত্রাইয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রবিউল ইসলাম চঞ্চলের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা
 


মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর আত্রাই 
তিন নং আহসানগঞ্জ ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে নিজ ইউনিয়নের জনসাধানের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন আত্রাই উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সফল সাধারণ সম্পাদক মোঃরবিউল ইসলাম চঞ্চল। ঈদের পরেরদিন ৬০/৭০ টি মোটরসাইকেল নিয়ে নিজ ইউনিয়নের সকল এলাকা ঘুরে সাধারন জনগনের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন চঞ্চল।

এ ব্যপারে রবিউল ইসলাম চঞ্চল বলেন আমার বড়আব্বু এ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, আমার পরিবার সব সময় ৩ নং আহসানগঞ্জ ইউনিয়নের জনগনের সুখে দুঃখে পাশে ছিল। আমিও আমার সাধ্য মত জনগনের সেবা করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। এরই ধারাবাহিকতায় আমি আগামী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এবং সকলের দোয়াপ্রার্থী।

শেখ হাসিনার জন্যই এত উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে-এমপি শাওন

শেখ হাসিনার জন্যই এত উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে-এমপি শাওন



মোঃ আওলাদ হোসেন, জেলা প্রতিনিধি ভোলা (দৌলতখান) 

ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সারাদেশে যোগাযোগ ব্যবস্থা, বিদ্যুৎ, স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসা উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে।
আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসারপর লালমোহন ও তজুমদ্দিনে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার আগে বদরপুরের মানুষ ট্রলার দিয়ে লালমোহন যেতে হতো। এখন কয়েক মিনিটে যাওয়া যায় উপজেলা সদরে।
সোমবার দুপুরে বদরপুর হাজীর হাট তোফায়েল আহমেদ দাখিল মাদ্রাসার নবনির্মিত ভবরের উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন এসব কথা বলেন।  বদরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদুল হক তালুকদারের সভাপতিত্বে এসময় টেলিকনফারেন্সে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ । উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ফখরুল আলম হাওলাদার, যুগ্ম-সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম রিপন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন আরজু, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক মোঃ শাহিন, বদরপুর উত্তর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আরশাদ মেলকার, দক্ষিণ যুবলীগের আহ্ববায়ক মোঃ কামাল সিকদার প্রমূখ।

দিনাজপুরে সুবিধা বঞ্চিত ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে রান্না করা মাংস বিতরণ

দিনাজপুরে সুবিধা বঞ্চিত ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে রান্না করা মাংস বিতরণ



মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি॥ মানবিকতা যখন জাগ্রত হয় তখন অর্থ সাদা কাগজে পরিণত হয়।আর যুব সমাজ যখন জাগ্রত হয় তখন দেশ ও জাতি গর্বিত হয়।আর এই মানবিকতাকে জাগ্রত করতে সুবিধা বঞ্চিত ও দরিদ্র পরিবারের শিশুদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে এরাইজ ফেল্প ফর চাইল্ড ফাউন্ডেশনের স্কুল,কলেজ ও ইউনির্ভাসিটির অধ্যায়নরত ছাত্ররা কোরবানীর মাংস নিজেদের বাসায় রান্না করে সুবিধা বঞ্চিত ও দরিদ্র পরিবারের শিশুদের মাঝে বিতরণ করেছেন।  
৩ আগষ্ট মঙ্গলবার দুপুরে সদরের রহমতপাড়া নামকস্থানে ২ শতাধিক শিশুদের মাঝে এই খাদ্রসামগ্রী বিতরণে উপস্থিত ছিলেন, এরাইজ হেল্প ফর চাইল্ড ফাউন্ডেশনের কো অর্ডিনেটর ইসতিয়াক ইসলাম, ফাউন্ডেশনের সভাপতি হাসেম বাধন,মাসরুকা আফরিন,আহসাক তাহমিদ,জেবা তাসনিম,শাহনাজ রায়হান সাম্মী,মাহাদির জাওয়ারসহ ফাউন্ডেশনের অন্যান্য সদস্যরা।
এসময় ফাউন্ডেশনের কো-অর্ডিনেটর ইসতিয়াক ইসলাম বলেন, ৩৮ জেলায় আমাদের এই ফাউন্ডেশন কাজ করছে,আমরা আমফানের সময় সাতক্ষীরা,ফরিদপুর,গাজিপুর,টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন জেলায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারদের মাঝে খাদ্রসামগ্রী,ত্রানসামগ্রী বিতরণ করেছি। এবার মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে অনেক পরিবার কোরবানী দিতে পারেনি তাই আমরা যারা কোরবানী দিয়েছি তারা সকলেই কিছু কিছু মাংস বাসা থেকে রান্না করে এনে সুবিধা বঞ্চিত ও হতদরিদ্র পরিবারের শিশুদের মাঝে বিতরণ করে তাদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করেছি।যাতে তারা ঈদের আনন্দটা উপভোগ করতে পারে।তাই আমাদের প্রচেষ্টা তাদের সাথে কিছু সময় থেকে তাদের আনন্দটাকে নিজের আনন্দের সাথে মিলিয়ে মন খুলে হাসতে ও হাসাতে পারি।

মোংলায় সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত গৃহবধু রুপা বেগমের অবস্থা সংকটাপন্ন

মোংলায় সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত গৃহবধু রুপা বেগমের  অবস্থা সংকটাপন্ন

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মোংলায় এক গৃহবধুর উপর হামলার অভিযোগ উঠেছে চিহ্নিত ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে। সন্ত্রাসীদের দায়ের কোপে মাথায় আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হয়ে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ওই হামলায় গুরুতর আহত গৃহবধু রুপা বেগমের শারিরীক অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন তার স্বজনেরা। হামলার ঘটনায় ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আহতের পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশ প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

আহতের পরিবার ও থানা দায়েরকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানা যায়, মোংলা পৌর শহরের মোর্শেদ সড়ক এলাকায় একটি জমির বায়না করেন রুপা বেগমের শাশুড়ি নুর নাহার বেগম। বায়নাকৃত সম্পত্তি এক এর এক খতিয়ান ভুক্ত হওয়ায় নির্দিষ্ট সময়ে বায়না দাতা বায়নাকৃত ভূমি রেজিষ্ট্রি করে দিতে পারেননি। তবে ভোগ দখল দিয়েদেন বায়না গ্রহীতাকে। দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও বায়নাদাতা ভূমি রেজিষ্ট্রি করে না দেয়ায় আদালতে মামলা করেন নুর নাহার বেগম। ওই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে একটি ভূমিদস্যু চক্র নুর নাহার বেগমকে নানাভাবে হয়রানী করতে থাকেন। 

আহত রুপা বেগমের শাশুড়ী নুর নাহার বেগম জানান, গেল ২৯ জুলাই বাড়ীতে কেউ না থাকার সুযোগে বিরোধপূর্ণ জায়গাটি মোঃ মহিদুল ইসলাম, মনি বেগম, মোঃ রনি, মোঃ জনি, ফাতেমা বেগম, ইয়াসিন আকন, রুস্তম হাওলাদার, জোহরা বেগম, মোঃ স্বপন, আরো অজ্ঞাত ২/৩ জন মিলে দুপুরে দখল নেয়ার চেষ্টা করে। ওই সময় তাদের বাঁধা দিতে গেলে নুর নাহারের পুত্র বধু  রুপা বেগমের উপর হামলা চালায় তারা। তাদের দায়ের কোপে মাথায় গুরুতর আঘাত পান রুপা বেগম। সাথে সাথে গুরুতর আহত রুপা বেগমকে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। তার শারিরীক অবস্থা খারাপের দিকে গেলে মোংলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকরা রুপা বেগমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজে রেফার করেন। বর্তমানে রুপা বেগম খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তার শাশুড়ী নুর নাহার আরো জানিয়েছেন, সাতটি শেলাই দেয়া হয়েছে পুত্র বধুর মাথায়। অনেক রক্ত ক্ষরণের কারণে তার শারিরীক অবস্থা খুবই খারাপ। খাওয়া দাওয়া বন্ধ রয়েছে কয়েকদিন যাবৎ। শুধুমাত্র স্যালাইন দিয়ে  রাখা হয়েছে তাকে। 

এদিকে স্ত্রীকে দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখমের ঘটনার দায়ে ৯ জনের নাম উল্লেখসহ আরো  অজ্ঞাত ২/৩ জনের বিরুদ্ধে মোংলা থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে রুপা বেগমের স্বামী মোঃ রাজু। তবে এ ঘটনায় এখনো কোন আসামী আটক হয়নি। 

মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, মারামারির ঘটনা নিয়ে তদন্ত করছেন তারা। বাদী পক্ষ আর আহত গৃহবধু খুলনায় অবস্থান করায় প্রয়োজনীয় তথ্য না পাওয়ায় তারা এখনো ব্যবস্থা নিতে পারেনি।

অন্যদিকে গৃহ বধুর উপর হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত মহিদুল বলেন, তিনি বিরোধপূর্ণ জায়গার সমাধান চেয়ে একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন মোংলা সার্কেলথর সহকারী পুলিশ সুপার বরাবর। তাই এ নিয়ে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হননি। 

তবে মোংলা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসিফ ইকবাল বলেন, একটি লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য উভয় পক্ষকে ডেকে পাঠিয়েছিলেন। কিন্তুু এরই মধ্যেই দুই পক্ষ মারামারির ঘটনা শুনতে পাই। আহত রুপা বেগম সুস্থ্য হলে প্রয়োজনীয় তথ্য নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

কেশবপুরে গুলিবিদ্ধ যুবকের লাশ উদ্ধার

কেশবপুরে গুলিবিদ্ধ যুবকের লাশ উদ্ধার


 মোরশেদ আলম 
যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি:
যশোর কেশবপুর থানা পুলিশ অভিযানে চালিয়ে ০৩-০৮-২০২০ ভোর আনুমানিক ৩:৪৫মিনিটে একটি গুলিবিদ্ধ যুবকের লাশ উদ্ধার করেন। কেশবপুরের সদর ৬নং ইউনিয়নের দোরমুটিয়া গ্রামের শাহীনের জমি থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।এলাকা সূত্রে জানা গুলিবিদ্ধ যুবকের নাম মুনিরুজ্জামান  মনি (৩৫), এবং সে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী

কেশবপুর থানার এসআই ফজলে রাব্বী জান, ভোর রাতে গুলাগুলির শব্দ শুনে এলাকার লোকজন থানায় ফোন করেন। সেই সূত্র ধরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে গুলিবিদ্ধ মুনিরুজ্জামানের লাশ ও একটি শাটার গান, দুই রাউন্ড গুলি ও এক কেজি গাঁজা উদ্ধার করে। এস আই ফজলে রাব্বী বলেন মুনিরুজ্জামান এর বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় ১৫ টি মাদক মামলা ও মোবাইল কোর্ট এর ২ টি মামলা আছে।
মনিরুজ্জামান মনির বাড়ি কেশবপুর উপজেলার দোরমুটিয়া গ্রামে তার পিতার নাম জামাল উদ্দিন গাজী। 

কেশবপুর থানা পুলিশ জানান, মৃতদেহ  উদ্ধার করে কেশবপুর থানায় আনা হয়, দুই দল মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে টাকা ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে গুলাগুলির ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্চে, লাশ উদ্ধার করে যশোর মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

ঝিকরগাছা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা সহ করোনামুক্ত -৪

ঝিকরগাছা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা সহ করোনামুক্ত -৪


প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ 
ঝিকরগাছা উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম রেজা সহ আজ ঝিকরগাছা সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক রাসেল হুদা ভাই,
ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম রেজা ভাই,
যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য বন্ধু শিপলু,

 এই চার জন-কে ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে করনা মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। তাদের করোনামুক্তিতে  ২ নং পাশাপোল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের  সাধারণ সম্পাদক  প্রভাষক মোঃ সবুজ হোসেনর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। 

ঝিনাইদহ পুলিশ সুপারের নির্দেশে ওসি'র সফল অভিযান আবারও আটক-৪

ঝিনাইদহ পুলিশ সুপারের নির্দেশে ওসি'র  সফল অভিযান  আবারও আটক-৪






খোন্দকার আব্দুল্লাহ বাশার। 
( ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি) 



ঝিনাইদহকে সন্ত্রাস, মাদক, দুর্নীতিসহ সমস্ত অপকর্ম থেকে রক্ষা করে একটি সুশীল সুন্দর ঝিনাইদহ গড়ে তোলার লক্ষে পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান পিপিএম এর নির্দেশে সদর ওসি মিজানুর রহমান একের পর এক চোক ধাদালো কাজ দেখিয়ে ঝিনাইদহের মানুষকে চমক লাগিয়ে দিয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতায় মাদকের পাশাপাশি ঝিনাইদহের সচেতন মানুষের অনুরোধে অভিযান শুরু করেছেন নারীদের সম্মানকে জলাঞ্জলি দিয়ে যারা বিভিন্ন অপকর্মের সাথে লিপ্ত হয়েছেন তাদেরকে উপযুক্ত শাস্তির মাধ্যমে ঘরে ফেরাতে। এতেকরে যারা অপকর্মের সাথে লিপ্ত হয়ে গেছেন তাদের ভুল ভেঙ্গে সামনের দিনগুলিতে যেমন সুন্দর ভবিষ্যৎ ফিরে পাবে, তেমনি এদের শাস্তি এবং পরিনতি দেখে নতুন প্রজন্ম এই পেশা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে।
এসমস্ত অপকর্মকে নির্মূল করার লক্ষে সোমবার (২আগস্ট) রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওসি ভ্রাম্যমান আদালতের সাহায্য নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে শহরের আলহেরা পাড়ার সাবেক চেয়ারম্যান আবু বক্কারের বাসার ভাড়াটিয়া লাবনীর বাসা থেকে অনৈতিক কাজ চলাকালীন এক খরিদ্দার সহ তিনজন নারীকে আটক করে। আটক কৃতরা হলো, সদর উপজেলার মায়াধরপুর গ্রামের মোঃ আফান উদ্দিনের ছেলে রাসেল হোসেন (২৫),লেবুতলা গ্রামের খেলাফত মালিতার মেয়ে ইতি খাতুন (২২), ছোট কামারকুন্ডু গ্রামের মোঃ সাগর এর স্ত্রী লাবনী খাতুন (২০),নলডাঙ্গা গ্রামের মৃত হারুনের স্ত্রী সোহানা (২৫)।পরে ভ্রাম্যমান আদালত তাদের কাছ থেকে আর এসমস্ত কাজ না করার সর্তে মুচলেকা সহ অর্থ দন্ড প্রদান  করেন।

তারাকান্দায় সড়ক দূর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী ২জন নিহত ১জন আহত

তারাকান্দায় সড়ক দূর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী ২জন নিহত ১জন আহত


স্টাফ রিপোর্টার : আর.জে মিজানুর রহমান ইমন : 

ময়মনসিংহ তারাকান্দা উপজেলার ধোবাউড়া সড়কের নয়াপাড়া নামক স্থানে মিনি পিকআপের সাথে মোটরসাইকেল সংঘর্ষে, মোটরসাইকেলে থাকা আরোহী ২জন নিহত ও ১জন গুরুতর আহত হয়েছে ঘটনাটি ঘটেছে, ২আগষ্ট রবিবার । 

নিহত ব্যক্তিরা হলেন, তারাকান্দা উপজেলার ০৭নং রামপুর ইউনিয়নের স্বল্প গ্রামের মোঃ আবুল বাশার সরকারের ছেলে সজীব ও একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী বাড়ির দুলাল মিয়ার ছেলে সাদ্দাম । 

সূত্রে জানা যায়, মোটরসাইকেল ও মিনি পিকআপ সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই সাদ্দাম নিহত হন, এবং সজীব কে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার হলে  সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে আরো উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করলে ভালুকা নামক স্থানে পৌছাতেই এ্যাম্বলেন্সে তার মৃত্যু হয় । এলাকাবাসী সূত্রে আরো জানা যায় যে, সাইফুল ইসলাম নামে আরো একজন গুরুতর আহত হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে । তাদের এই অকাল মৃত্যুতে এলাকাবাসীর মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া ।  

তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পিকআপ সহ চালক সাব্বির (২৪) কে আটক করা হয়েছে, এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে ।

সান্তাহার বিলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে স্কুল ছাত্র নিহত

সান্তাহার বিলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে স্কুল ছাত্র নিহত



রাজশাহী ব্যুরো
বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার ইউনিয়নের দমদমা গ্রামে পূর্বশত্রতার জের ধরে দুপক্ষের সংঘর্ষে শিহাব হোসেন (১৭) নামের এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে।  গতকাল রোববার সন্ধ্যায় ওই গ্রামের রক্তদহ বিলের বেইলী ব্রীজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে আরও দুই তরুণ গুরুতর আহত হয়েছে।

দমদমা গ্রামের হারুনুর রশিদের ছেলে নিহত শিহাব হোসেন। সে এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী। এই ঘটনায় এলাকা থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থলে পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে।

আদমদীঘি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ জালাল হোসেন জানান, ঈদের দিন বিকেলে একই উপজেলার দমদমা গ্রামের কিছু তরুণের সাথে করজবাড়ি গ্রামের তরুণদের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। ঈদের পরের দিন রোববার সন্ধ্যায় শিহাব তার দুই বন্ধু প্রহর (১৫) ও জাকির হোসেন (১৮)কে নিয়ে ব্রীজ এলাকায় গেলে করজবাড়ি গ্রামের এখলাস হোসেনের ছেলে শিপলু সহ কয়েকজন তরুণ অর্তকিতে শিহাব হোসেনের ওপর হামলা করে এবং ছুরিকাঘাত করে তার গলা কেটে দেয়। 

তিনি আরও জানান, একই সময় শিহাবের দুই বন্ধু প্রহর ও জাকিরকেও ছুরিকাঘাত করে তারা। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই তিনজনকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে শিহাব মারা যায়। 

ওসি জালাল হোসেন জানান, ঘটনা জানার পরপরই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এই ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে।

নওগাঁর রাণীনগরে ছাত্রলীগের দুই নেতার উপর হামলা ও মারপিট

নওগাঁর রাণীনগরে ছাত্রলীগের দুই নেতার উপর হামলা ও মারপিট

 

রাজশাহী ব্যুরো
নওগাঁর রাণীনগরে হামলার শিকার হয়ে আহত উপজেলা ছাত্রলীগের দুই নেতা।

নওগাঁর রাণীনগরে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান হাসান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিমের উপর হামলা ও মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। রোববার (২ আগষ্ট) রাত অনুমানিক ৮ টার দিকে উপজেলার সদরের রেলগেট এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

হামলার শিকার ছাত্রলীগের দুই নেতা গুরুত্বর আহত হয়ে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

এ ঘটনায় জাসটিস নামে এক যুবকে আটক করেছে রাণীনগর থানা পুলিশ। আটককৃত জাসটিস রাণীনগর বাজারের রেজার ছেলে।

রাণীনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মামুনুর রশিদ মামুুন জানান, এদিন রাতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিম ঝিনা গ্রাম থেকে রাণীনগর বাজারে তাদের বাসায় আসছিলো। এ সময় রেলগেট এলাকায় ওত পেতে থাকা ১০-১৫ জন পথরোধ করে হাসান ও মিমকে রড়, পাইপ ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে। 

এ ঘটনায় আহত ছাত্রলীগের দুই নেতাকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে প্রথমে রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। তাদের দুই জনের অবস্থার অবনতি হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রাত অনুুমানিক ৯ টার দিকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে হস্তান্তর করা হয়েছে। তারা দুইজন হাসপাতে ভর্তি আছেন। এ ঘটনায় হামলা কারীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে রাণীনগর থানার ওসি মো: জহুরুল হক বলেন, এ ঘটনায় জাসটিস নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে এবং থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়া জড়িত অন্যান্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যহত রয়েছে।

গাজীপুর কালীগঞ্জে পুকুরে ডুবে ৯ বছরের শিশুর মৃত্যু

গাজীপুর কালীগঞ্জে পুকুরে ডুবে ৯ বছরের শিশুর মৃত্যু



স্টাফ রিপোর্টার : আর.জে মিজানুর রহমান ইমন : 

গাজীপুর কালীগঞ্জ উপজেলায় তুমলিয়া ইউনিয়নের ফিরিন্দা গ্রামে মোঃ আকবর আলীর ছেলে বাড়ির পাশে পুকুরে ডুবে মাহফুজুর রহমান মেরাজ নামে ৯ বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে । ঘটনাটি ঘটেছে, ২আগষ্ট রোববার দুপুরে । 

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক বিশ্বজিৎ জানান, নিহত শিশু মাহফুজুর রহমান মেরাজকে রবিবার  বিকেল সাড়ে চারটার দিকে তার পরিবারের লোকজন হাসপাতালে নিয়ে আসেন হাসপাতালে আনার আগেই সে মারা যায় ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিবেশি শিশুদের সাথে নিহত শিশু মাহফুজুর রহমান মেরাজ বাড়িতে খেলছিল, দুপুর ১টার পর থেকে তাকে খোঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না । অনেক খোঁজাখুঁজির পর তার চাচা বেলায়েত হোসেন বাড়ির পাশে পুকুরে থেকে তাকে উদ্ধার করে, কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন ।

পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যুর ঘটনা সত্যতা স্বীকার করেন কালীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোঃ নেছারউদ্দিন ।

উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগনের পক্ষে থেকে গরু কুরবানি করে ঈদ উপহার বিতারণ

উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যান সংগনের পক্ষে থেকে গরু কুরবানি করে ঈদ উপহার বিতারণ



মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ,কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে অসহায় দরিদ্র পরিবারের মাঝে সামান্য ঈদ উপহার হিসেবে গরু জবাই করে সেই মাংস ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় অসহায় দুস্ত ২১০ গরিব মানুষের মধ্যে  প্রতি মৌজার প্রতিনিধিদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়। 
 উমরমজিদ ইউনিয়ন মানব-কল্যাণ সংগঠন
এর ঈদ উপহার অনুষ্ঠানের শুভ সুচনা করেন
 ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মদ আলীর সরদার,৬ নং উমর মজিদ ইউনিয়ন পরিষদ।আরো উপস্তিত ছিলেন সংগঠনটি সভাপতি জনাব মোঃআমিনুল ইসলাম,সাধারন সম্পাদক  জনাব মোঃবজরুল করিম।আরো উপস্তিত ছিলেন সংগঠনটির সকল সদস্যরা। 
অনুষ্ঠানে সংগঠনের সকল সদস্য এবং দেশের করোনা মহামারী ও ভয়াবহ বন্যা পীড়িত এলাকার বানভাসি মানুষের জন্য প্রার্থনা করে দোয়া করা হয়।এর আগে সংগঠনটি করোনা মোকাবেলা বিশেষ ভমিকা পালন করে।সংগঠনটি ঈদুল ফিতরে ২১০ পরিবারের মাঝে ও ঈদ উপহার বিতারন করেছিলো। সংগঠনটি সভাপতি জনাব মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন,সংগঠনটি  সফল ভাবে বাস্তবায়ন করার জন্য সংগঠনের সকল স্তরের সেচ্চাসেবী ভাইদের কে আন্তরিক ভাবে  সংগঠনের সকল সদস্য কে সামনের দিনে মানবতার সেবায় আরও বেশি বেশি কাজ করার তাগিদ দেন।সাধারন সম্পাদক জনাব মোঃবজরুল করিম বলেন,,আমরা এই সংগনের দ্বারা অসহায় ও গরীব মানুষদের পাশে সব সময় দাড়ানোর ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

মাধবপুরে দাম নেই চামড়ার অনেকেই করেছেন দান

মাধবপুরে দাম নেই চামড়ার অনেকেই করেছেন দান


  লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের মাধবপুরের বিভিন্ন এলাকায় পানির দরে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির পশুর
কাঁচা চামড়া। নামমাত্র দামে সংগ্রহকারীদের কাছে চামড়া বিক্রি করতে হচ্ছে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। শনিবার (১ আগস্ট) কোরবানি শুরুর পরপরই পাড়া মহল্লা থেকে চামড়া সংগ্রহ করতে থাকেন ব্যবসায়ীরা। তবে, তা বিক্রি করতে এসে দাম না পাওয়ার অভিযোগ করছেন তারা। আবার অনেকেই দাম না পাওয়ায় তা বিক্রি না করে মসজিদ-মাদ্রাসা এতিমখানায় দান করছেন। তারা জানান, বড় আকারের একটি চামড়া মাত্র একশ টাকায় বিক্রি করার চেয়ে দান করে দেয়াই ভালো। 

সকাল থেকেই মাধবপুর পৌর শহরের ষ্টেডিয়াম সংলগ্ন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে চামড়া কিনে এনে ক্ষুদ্র বিক্রেতারা বিক্রি করছেন বড় বড় আড়ৎদারদের কাছে। এদিকে দাম কম হলেও মৌসুমী ব্যাবসায়ীদের ক্ষতির মুখে পড়বেন না বলে জানিয়েছেন চামড়া সংগ্রহকারীরা। দাম কম থাকার কারণ জানতে চাইলে মাধবপুর পৌরশহরের ব্যবয়ায়ী সাজু মিয়া জানান, এখন বাজার খারাপ ঢাকার বাইরেও দাম কমের কারণে চামড়া সংগ্রহ করে বিপাকে পড়েছেন অনেকে।

সরকারের বেধে দেয়া দামের চেয়েও কম দামে কেনার পরও বিক্রি করতে না পারারও অভিযোগ পাওয়া গেছে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে। দেশে বছরব্যাপী ট্যানারি শিল্পে দরকারি চামড়ার ৫০ ভাগের বেশি সংগ্রহ করা হয় প্রতিবছর কোরবানির সময়। এই সময়ে চামড়া সংগ্রহে বিশেষ প্রস্তুতি নিয়ে থাকেন ট্যানারি মালিক, কাঁচা চামড়ার আড়ৎদার মৌসুমী ও ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা

এজন্য ঈদের আগেই সরকারিভাবে নির্ধারণ করে দেয়া হয় লবণযুক্ত কাঁচা চামড়ার দাম। যেন অযথা বাড়তি দামে চামড়া কেনাবেচা করে তা সংরক্ষণ করার পর্যায় পর্যন্ত যাওয়ার আগেই দরদামের টানাটানিতে নষ্ট না হয় দেশের ২য় বৃহত্তম রপ্তানি খাতের কাঁচামাল। বিশেষ করে মৌসুমী ও ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা অতিরিক্ত দামে চামড়া কিনেছে এমন অভিযোগে।

২০১৫ সালে রাজধানীর পোস্তার আড়ৎদাররা কাঁচা চামড়া কেনা থেকে বিরত থাকেন। এতে অনেক চামড়া সে বছর পোস্তার রাস্তায় দাঁড়ানো ট্রাকেই নষ্ট হয় ঢাকার বাইরে থেকে আসা মূল্যবান চামড়া। ২০১৩ সালে ঢাকায় লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৮৫ থেকে ৯০ টাকা আর মাধবপুরে দাম ছিল ৭৫ থেকে ৮০ টাকা। সারাদেশে প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা ৫০ থেকে ৫৫ টাকা।

২০১৪ ইং সালে আগের বছরের চেয়ে প্রতি বর্গফুটে ১৫ টাকা কমে এবছর কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়। সেবার ঢাকায় প্রতি ফুট লবণযুক্ত গরুর চামড়া ৭০ থেকে ৭৫ টাকা আর মাধবপুরে বিক্রি হয় ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। সারাদেশে প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত খাসির চামড়ার দাম ধরা হয় ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। ২০১৬ ইং সালে
দাম নির্ধারণে নিম্নমুখী ভাব রাখা হয়। 

লবণযুক্ত গরুর কাঁচা চামড়ার প্রতি বর্গফুটের সর্বনিম্ন দাম ধরা হয় ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, মাধবপুরে ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। খাসির চামড়া প্রতি বর্গফুট ২০ থেকে ২২ টাকা নির্ধারণ করা হয়। ২০১৭ ইং সালে ঢাকায় লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দাম ধরা হয় ৫০ থেকে ৫৫ ও মাধবপুরে ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। খাসির চামড়ার দাম সারাদেশে প্রতি বর্গফুট ২০ থেকে ২২ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

২০১৮ ইং সালে ঢাকায় লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৪৫-৫০ টাকা এবং মাধবপুরে ৩৫-৪০টাকা নির্ধারণ করা হয়। সারাদেশে খাসির চামড়া ১৮ থেকে ২০ টাকা। ২০১৯ ইং ঢাকায় লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৪৫-৫০ টাকা এবং মাধবপুরে ৩৫-৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয় সারাদেশে খাসির চামড়া ১৮-২০ টাকা ২০২০ ইং সালে রাজধানীতে লবণযুক্ত। 

প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৩৫ থেকে ৪০ টাকা আর মাধবপুরে ২৬ থেকে ৩০ টাকা এবং সারাদেশে লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়ার দাম ১২ থেকে ১৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে দামের পরিবর্তন না আসলে অনেক ব্যবসায়ীরা চামড়া ক্রয় করা থেকে বিরত থাকবেন।

কিশোরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৩ জন নিহত

কিশোরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায়  একই পরিবারের ৩ জন নিহত




মে: লাতিফুল আজম
কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি:

 নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মা-ছেলেসহ একই পরিবারের তিন জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন একজন।

আজ রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার পল্লীবিদ্যুৎ অফিসের সামনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-কিশোরগঞ্জ উপজেলার রনচন্ডি মাঝপাপাড়া এলাকার রুমা আক্তার (২৬), ছেলে আব্দুর রাহিন (৪) এবং তার বোন আদুরি (১৯)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জলঢাকা থেকে কুমিল্লাগামী উল্লাস পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী রুমা আক্তার (২৬), ছেলে আব্দুর রাহিন (৪) এবং তার বোন আদুরি (১৯) ঘটনাস্থলে নিহত হন। এতে গুরুতর আহত হন মোটরসাইকেল চালক রুমা আক্তারের স্বামী লিটন (৩২)। তাকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পরিবারের বরাত দিয়ে কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হারুন অর রশীদ বলেন, গঙ্গাচড়া উপজেলার দক্ষিণ কোলকোন্দ এলাকার লিটন বউ-ছেলে ও ছোট শ্যালিকা আদুরিকে নিয়ে রনচন্ডি মাঝপাপাড়া থেকে ঈদের দাওয়াত খাওয়ার জন্য কিশোরগঞ্জ উপজেলার কালিকাপুর এলাকায় যাচ্ছিলেন।

নাগরপুরে এসএসসি ব্যাচ- ২০০৫ শিক্ষার্থী বন্ধুদের পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত

নাগরপুরে এসএসসি ব্যাচ- ২০০৫ শিক্ষার্থী বন্ধুদের পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত


হাসান সাদী,নাগরপুর (টাঙ্গাইল )প্রতিনিধিঃ
‘এসো মিলি প্রাণের উল্লাসে  ’এই শ্লোগানকে সামনে রেখে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সরকারি যদুনাথ পাইলট মডেল স্কুল এন্ড কলেজের  প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের (এসএসসি ব্যাচ-২০০৫) পূর্ণমিলনী- ২০২০ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার  দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত পূর্ণমিলনীতে উপস্থিত বন্ধুদের স্মৃতিচারণ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান (নৃত্য, গান, কৌতুক), কবিতা ও ছড়া আবৃত্তি এবং শুভেচ্ছা স্মারক উপহার (মগ, গেঞ্জি) বিতরণ করা হয়।

এ দিন সকাল থেকে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের রঙ্গিন ও বর্ণিল সাজে মুখরিত হয়ে উঠে (উপেন্দ্র সরবর) দিঘী পাড়। প্রায় ষোল  বছর পর প্রিয় বন্ধুদের সাথে দেখা হওয়ায় আড্ডা আর গল্পে সময় পার করেন তারা। পূর্ণমিলনী উৎসবের আয়োজন কমিটির মাধ্যমে  বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে দিনের শুরুতেই বন্ধুদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। এরপর সকালের নাস্তা শেষে শুরু হয় স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য।

প্রিয় ক্যাম্পাসে সোনালী দিনগুলোর কথা স্মরণ করে তারা বলেন, পড়ালেখা শেষে কেউ চাকুরি, কেউ ব্যবসা, বিভিন্ন পেশারকেউ সংসার আর ছেলে-মেয়ে নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি। এ ব্যস্ত সময়ে পূর্ণমিলনী আমাদেরকে যেন সোনালী দিনগুলোতে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছে। সবাইকে একত্রিত করার এই প্রয়াস সার্থক হয়েছে উল্লেখ করে আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তারা।
পূর্ণমিলনী উৎসবের আয়োজক কমিটির দায়িত্ব পালন করা সবাইকে শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানিয়ে এসএসসি ব্যাচ-২০০৫ 
‘এসো মিলি প্রাণের উল্লাসে  ’এই শ্লোগানকে সামনে রেখে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সরকারি যদুনাথ পাইলট মডেল স্কুল এন্ড কলেজের  প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের (এসএসসি ব্যাচ-২০০৫) পূর্ণমিলনী- ২০২০ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার  দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত পূর্ণমিলনীতে উপস্থিত বন্ধুদের স্মৃতিচারণ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান (নৃত্য, গান, কৌতুক), কবিতা ও ছড়া আবৃত্তি এবং শুভেচ্ছা স্মারক উপহার (মগ, গেঞ্জি) বিতরণ করা হয়।

এ দিন সকাল থেকে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের রঙ্গিন ও বর্ণিল সাজে মুখরিত হয়ে উঠে (উপেন্দ্র সরবর) দিঘী পাড়। প্রায় ষোল  বছর পর প্রিয় বন্ধুদের সাথে দেখা হওয়ায় আড্ডা আর গল্পে সময় পার করেন তারা। পূর্ণমিলনী উৎসবের আয়োজন কমিটির মাধ্যমে  বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে দিনের শুরুতেই বন্ধুদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। এরপর সকালের নাস্তা শেষে শুরু হয় স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য।


প্রিয় ক্যাম্পাসে সোনালী দিনগুলোর কথা স্মরণ করে তারা বলেন, পড়ালেখা শেষে কেউ চাকুরি, কেউ ব্যবসা, বিভিন্ন পেশার সাথে সবাই  ব্যস্ত সময় পার করছি। এ ব্যস্ত সময়ে পূর্ণমিলনী আমাদেরকে যেন সোনালী দিনগুলোতে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছে। সবাইকে একত্রিত করার এই প্রয়াস সার্থক হয়েছে উল্লেখ করে আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তারা।
পূর্ণমিলনী উৎসবের আয়োজক কমিটির দায়িত্ব পালন করা সবাইকে শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানিয়ে এসএসসি ব্যাচ-২০০৫ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠান সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।