কয়রায় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের লাঞ্চিত করায় ঘাটাখালি বেঁড়িবাঁধ অরক্ষিত পানি ঢুুকছে ভিতরে

কয়রায় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের লাঞ্চিত করায় ঘাটাখালি বেঁড়িবাঁধ অরক্ষিত পানি ঢুুকছে ভিতরে





কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ঘূর্নিঝড় আম্পানে খুলনার   কয়রা উপজেলা সদর ইউনিয়নের ঘাটাখালি বিধ্বস্থ বেঁড়িবাঁধ আবারও অরক্ষিত হওয়ায় বুধবার সকাল থেকে লবণ পানি প্রবেশ করছে লোকালয়ে। মঙ্গলবার স্থানীয় মেম্বর আঃ গফফারের উস্কানিতে ঘাটাখালি ও গোবরা গ্রামের একদল চিহ্নিত সন্ত্রাসী ইউপি চেয়ারম্যান সাংবাদিক হুমায়ুন কবির ও ২ জন মেম্বরকে লাঞ্চিত এবং মহিলা মেম্বরের স্বামী রফিক সিরাজকে মারপিট করায় বুধবার থেকে বাঁধের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। যে কারনে রিং বাঁধের প্রায় ১০০ ফুট রাস্তা ভেঙ্গে দ্রুত গতিতে লবণ পানি ঢুকছে ভিতরে এবং বুধবার রাতের মধ্যেই উপজেলা সদর সহ ৮ টি গ্রাম আবারও প্লাবিত হওয়ার আশা করছেন এলাকাবাসী। এদিকে আহত মহিলা মেম্বরের স্বামী রফিক সিরাজকে ঘটনার পরই জায়গীরমহল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং তার বুকের হাড় চুটেছে বলে ডাক্তার জানিয়েছেন।
অপর দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সন্ত্রাসী ইসহাক চেয়ারম্যান কে প্রাণ নাশের হুমকীসহ তাকে লাঞ্চিত করার চেষ্টার কারনে চেয়ারম্যান কয়রা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন। এবিষয় চেয়ারম্যান সাংবাদিক হুমায়ুন কবিরের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, ১০ কেজি চাউলের বিনিময়ে রিং বাঁধে সংস্কার কাজ দেখতে ইউপি সদস্য হরেন্দ্রনাথ ও আঃ রবকে নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ঘাটাখালি বাঁধে গেলে স্থানীয় গফফার মেম্বর ও তার সহযোগিরা উস্কানীমূলক কথাবার্তা বলে মাননীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং আমাকে নিয়ে অশ্লীল কথাবর্তা বলেন। এসময় আমি বাঁধের পাশ থেকে সরে যাই এবং পিছনে ফিরে দেখি মহিলা মেম্বরের স্বামীকে গফফার মেম্বরের নির্দেশে দুদু, খালেক, ইসহাকসহ ৭,৮ জন পানিতে ডুবিয়ে মারার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, রফিক সিরাজ সরকারি ১০ কেজি চাউল দিতে মাষ্টাররোল বানাতে বাঁধে শ্রমিকের সংখ্যা গনণা করে ৫২৩ জন খুজে পায়। কিন্তু গফফার মেম্বরর ছেলে হেলাল ও দুদু বাঁধে ৮০০ লোক কাজ করছে বলে জানায় এবং রফিক সিরাজের ওই তালিকা বাদ দিতে বলেন। তবে রফিক সঠিক তালিকা ছিড়ে না ফেলায় গফফার মেম্বরের নির্দেশে তার লোকজন তাকে মারপিট করেন। যে কারনে এলাকার সাধারণ মানুষ গফফার মেম্বরের ভয়ে বাঁধে আর কাজ করতে না যাওয়ায় বাঁধ অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। এ সম্পর্কে গফফার মেম্বরের সাথে বিভিন্নভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায় নি। তবে রফিক সিরাজের স্ত্রী মহিলা মেম্বর আনজুয়ারা খাতুন জানান, গফফার মেম্বর ৩০০ শ্রমিকের নামে ১০ কেজি করে চাউল নিতে চেষ্টা করছিল এবং তার স্বামী প্রতিবাদ করায় তাকে পানিতে ডুবে মারার চেষ্টা করে। উল্লেখ্য ঘাটাখালি বেঁড়িবাঁধ এখন অরক্ষিত হওয়ায় এলাকায় মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

সাতক্ষীরায় এক ডাক্তার করোনায় আক্রান্ত!

সাতক্ষীরায় এক ডাক্তার করোনায় আক্রান্ত!




আজহারুল ইসলাম সাদী, সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ
সাতক্ষীরা জেলায় আরো এক জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
এবার এক ডাক্তারের করোনা পজেটিভ ধরা পড়েছে বলে আজ বুধবার ৩ জুন বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছেন স্বাস্থ্য বিভাগ।
আক্রান্ত ব্যক্তির নাম ডাক্তার আমিনুল ইসলাম (৩৪) তিনি সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার নলতা এলাকার কাজলা গ্রামের বাসিন্দা।
বিষয়টি নিশ্চিত করে সাতক্ষীরা সির্ভিল সার্জন হুসাইন শাফায়াত ও সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাঃ জয়ন্ত সরকার বলেনঃ
আজ পর্যন্ত সাতক্ষীরা জেলার
মোট নমুনা সংগ্রহ হয়েছে -৯৯৭ জনের, তার মধ্যে
রিপোর্ট এসেছে- ৬৯৫ জনের,
রির্পোট পজিটিভ এসেছে -৪৭ জনের,
সুস্থ হয়েছেন -৩ জন।
হাসপাতালে আইসোলেশন এ আছেন-১জন,
বাড়ীতে আইসোলেশন আছেন-৪৬ জন।

নাগরপুরের দুয়াজানী কলেজ পাড়ার বাদশা ফাহাদ বিশাল বক্স ঘুড়ি তৈরী করে তুমুল আলোড়ন সৃষ্টি করেছে!

 নাগরপুরের দুয়াজানী কলেজ পাড়ার  বাদশা ফাহাদ বিশাল বক্স ঘুড়ি তৈরী করে তুমুল আলোড়ন সৃষ্টি করেছে!





ডা.এম.এ.মান্নান টাংগাইল জেলা প্রতিনিধি:মহামারী করোনা ভাইরাস(কোভিড-১৯)সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে বাঙালিকে কয়েকটি প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ,মহান স্বাধীনতা দিবস সহ বেশ কিছু গুরুত্বপৃর্ণ সামাজিক ও জাতীয় উদযাপন থেকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য বিরত থাকলেও মজার খেলা ‘বিভিন্ন প্রজাতি ঘুড়ি ওড়ানো’ থেকে দেশের ঘুড়িমনা মানুষকে বিরত রাখতে পারেনি।বরং লকডাউন থাকায় শিশু ও যুবকদের পাশাপাশি বিভিন্ন বয়সের কর্মহীন লোকজনও এই ঘুড়ি ওড়ানোয় মেতে উঠছে। বিকেল হলেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে শুরু হয় ঘুড়ি ওড়ানো। আকাশের দিকে তাকালেই দেখা যায় বিভিন্ন রং এর ঘুড়ি উড়ছে। এমন চিত্র এখন টাংগাইলের নাগরপুরে বিভিন্ন এলাকা ও পাড়া মহল্লায়।কেউ এলাকার ফাঁকা জায়গায়,কেউ নিজ বাড়ির ছাদ থেকে ঘুড়ি উড়াচ্ছে। কেউ আবার অজানা কারো সাথে ঘুড়ি কাটাকাটির প্রতিযোগিতা করছে।হঠাৎ করে নাগরপুর সরকারি কলেজেরর  বিশাল মাঠে ২৪ বছরের রক্তমাখা শ্যামলা বর্ণের হাঁসি মাখা যুবক ছেলে নাম বাদশা ফাহাদ ডাক নাম ফাহাদ তার বাড়ি নাগরপুর প্রানকেন্দ্র অবস্হিত ঐতিহ্যবাহী দুয়াজানী কলেজ পাড়া। তিনি মরহুম আইয়ুব আলীর নাতি ও মরহুম আ.কাইয়ুম মিয়ার তৃতীয় সন্তান ও ব্যাংকার ইন্জিনিয়ার তরিকুল ইসলামের আদরের ছোট ভাই। বাদশা ফাহাদ ঢাকা উত্তরায় একটা প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকুরী করত।  করোনার কারনে মায়ের আকুতি বিনুতির অনুরোধে  চাকুরি বাদ দিয়ে চলে আসছে নিজ বাড়িতে করোনা থেকে নিজেকে রক্ষা পেতে। বাদশা ফাহাদ ছোট বেলা থেকে একটু বেশী মায়াবি ও বন্ধুপ্রেমিক। তিনি মায়ার বাধনে পড়ে  বিদেশ থেকে কর্ম বাদ দিয়ে চলে এসেছে। করোনার অলস সময় পাড় না করে  বিশাল বড় বক্স ঘুড়ি নিজ হাতে বানিয়ে নাগরপুর সহ সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে যুবক ছেলে ফাহাদ। তার বক্স ঘুড়ি দেখার জন্য নানান জায়গা থেকে যুবক, শিশু, বৃদ্ধ ও নারী-পুরুষ বাড়িতে, মাঠে এসে ভিড় জমাচ্ছে। ঘুড়ি প্রেমিক যুবক বাদশা ফাহাদ এর কাছে জানতে চাইলে বলেন-আমি ছোট বেলা থেকেই ঘুড্ডি ওড়াতে ভালবাসি। সময় অভাবের কারনে আর ডিজিটাল দেশ হওয়াতে ঘুড্ডি ওড়ানোর আড্ডায় থেকে মোবাইলে ইন্টারনেট কিনে ফেজবুক সহ ইউটিউবে বেশী সময় পাড় করতাম। কয়েকদিন যাবত করোনায় আসায় নাগরপুর সহ সারাদেশে আকাশের দিকে তাকালে দেখতে পাই বিভিন্ন জাতি ঘুড্ডি যেমন চং,বক্স ঘুড়ি,চিলা ঘুড্ডি, বিমান ঘুড্ডি দেখতে পাই তখন আমি সিদ্ধান্ত নিলাম আমি বক্স ঘুড়ি নিজ হাতে বানাবো এবং বেত,রংগিন তাওড়া,পলি ও মোটা সুতা সংগ্রহ করে  নিজ বাড়িতে তৈরী করে ফেললাম বক্স ঘুড়ি। সময় লেগেছে তিনদিন এবং খরচ হয়েছে মোট ১৩০০ শত টাকা।  আমি আনন্দিত ও গর্বিত আমার বক্স ঘুড্ডি নাগরপুরবাসীর মনে জায়গা করে নিয়েছে। আমি সকল যুবক ভাইদের ইন্টারনেটে বেশী সময় না দিয়ে ঘুড্ডি ওড়ানোর আহবান করছি ।           তার মেঝ ভাই সজিব হুসাইন মোহা.হাসান বলেন-আমি আমার ছোট ভাই ফাহাদকে তিনদিন যাবত রাত দিন বক্স ঘুড়ি বানানোর কাজে বেশী সময় অতিবাহিত করে দেখছি। আমি ফাহাদকে বার বার বলছি তুমি বানাতে পারবে না বক্স ঘুড়ি। তুমি ছোট সাধারন ঘুড়ি বানাও কিন্তু ছোট ভাই ফাহাদ আমার কথা না শুনে সাহস করে বক্স ঘুড়ি তৈরী করলো এবং সুন্দরভাবে আকাশে ওড়ালো।আমি আমার ছোট ভাইকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানাই কারন তিনি ১০০% সফল হয়েছেন।
দুয়াজানী কলেজ পাড়ার আরও দুজন ঘুড়ি প্রেমিক কলেজ ছাত্র মো.ছাব্বির ও সুমন তারা দুজন মিলে বক্স ঘুড়ি নিজ হাতে তৈরী  করেছে। তারা জানান, ঘুড়ি ওড়ানোটা আমাদের নেশা না হলেও বর্তমান করোনার কারণে অলস সময় ব্যয় না করে ঘুড়ি উড়িয়ে সময় কাটাচ্ছি। বিকেলটা অনেক আনন্দের কেটে যাচ্ছে। এটি এক অন্যরকম অনুভুতি ও মজা রাখছে আমাদের।            ঘুড়ি ইতিহাস সম্পর্কে ডা.এম.এ.মান্নান বলেন, আমি যতটুকু জেনেছি বিভিন্ন ইতিহাস ও বিভিন্ন  সাম্পাহিক ও মাসিক ম্যাগাজিন ও দৈনিক পত্রিকার মাধ্যমে, ঘুড়ি এক প্রকারের হাল্কা খেলনা যা সুতা টেনে আকাশে ওড়ানো হয়। পাতলা কাগজের সাথে চিকন কঞ্চি লাগিয়ে সাধারণত ঘুড়ি তৈরি করা হয়। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের এবং বিভিন্ন উপাদান ও নকশার ঘুড়ি রয়েছে। বিশ্বজুড়েই ঘুড়ি ওড়ানো একটি মজার খেলা। এছাড়াও বহু দেশে ঘুড়ি ওড়ানোর উৎসব ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে।  দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান প্রভৃতি দেশে ঘুড়ি ওড়ানো একটি বিনোদনমূলক অবসর বিনোদন। বাংলাদেশে বিশেষ করে পুরনো ঢাকায় পৌষ মাসের শেষ দিন, অর্থাৎ পৌষ সংক্রান্তিতে ঘুড়ি ওড়ানো উৎসব পালন করে থাকে । ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বিশ্বকর্মা পূজার দিন ঘুড়ি ওড়ানোর প্রথা রয়েছে।ধারনা করা হয় যে, প্রায় ২,৮০০ বছর পূর্বে চীন দেশে ঘুড়ির সর্বপ্রথম ঘুড়ির উৎপত্তি ঘটেছে। পরবর্তীকালে এটি এশিয়ার অন্যান্য দেশ - বাংলাদেশ, ভারত, জাপান এবং কোরিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও, ইউরোপে ঘুড়ি খেলাটির প্রচলন ঘটে প্রায় ১,৬০০ বছর পূর্বে। ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত ব্রিষ্টল ঘুড়ি উৎসব শেষে সবচেয়ে বড় ঘুড়িটি প্রায় ২০ মিনিট আকাশে অবস্থান করে। এটি ভূমির প্রায় ১০,৯৭১ বর্গফুট জায়গা দখল করেছিল যা বিশ্ববাসী দেখে অনেক আনন্দিত হয়েছিল। ঘুড়ির কাগজ সাধারণত় বেশ পাতলা, যাতে ঘুড়ি হয় হালকা এবং বাতাসে ভাসার উপযোগী। অনেক দেশেই ঘুড়ি বানানোর জন্য সাদা কাগজের পাশাপাশি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে রঙিন কাগজ ব্যবহারের রীতি দেখা যায় এবং এর মূল কারণ মনোরঞ্জন ও সৌন্দর্য্যবৃদ্ধ। বিভিন্ন দেশে ঘুড়ির বিভিন্ন রকম নামকরণ করা হয়ে থাকে। বাংলাদেশে ঘুড়ির নিম্নবর্ণিত নামগুলো হল-চারকোণা আকৃতির বাংলা ঘুড়ি, ড্রাগন, বক্স, মাছরাঙা, ঈগল, ডলফিন, অক্টোপাস, মৌচাক, কামরাঙা, প্যাঁচা, ফিনিক্স, জেমিনি, চরকি লেজ সহ নানা রকমের নাম রয়েছে।

কেশবপুরে করোনা সময়কালে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২৬৬ মামলায় ৬ লাখ টাকা জরিমানা

কেশবপুরে করোনা সময়কালে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২৬৬ মামলায় ৬ লাখ টাকা জরিমানা




মোরশেদ আলম 
যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি। 

যশোর কেশবপুরে করোনার সংক্রমণ রুখতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে  ২৬৬টি মামলায় ৬ লাখ ১৫ হাজার ৬০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন, উপজেলা প্রশাসনের এসব ভ্রাম্যমাণ আদালতে অর্থদন্ডে দন্ডিত হয়েছেন ২৬৬ জন।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলার অংশ হিসেবে গত মার্চ ২০২০ থেকে কেশবপুর উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান জোরদার করা হয়েছে।

 উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলার নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি)। 

সরকারি নির্দেশ অমান্যকরার অপরাধে অভিযানগুলো পরিচালিত হয়। গত মার্চ মাস থেকে ১ জুন ২০২০ পর্যন্ত মোট ২৬৬টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৬ লাখ ১৫ হাজার ৬০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। জরিমানার এসব অর্থ নিয়ম অনুযায়ী রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা বলেন, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে কেউ যেন নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়াতে না পারেন তার জন্যও অভিযান চালোমান রয়েছে। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

উঠানে পড়ে থাকা লাশ দাপন করলো ‘শেষ বিদায়ের বন্ধু’

উঠানে পড়ে থাকা লাশ দাপন করলো ‘শেষ বিদায়ের বন্ধু’




ফিরোজ মাহমুদ, মিরসরাই
বাড়ির উঠোনের এক কোনে পড়ে আছে একটি মৃতদেহ! বৃষ্টিতে ভিজে আর রোদে শুকিয়ে একাকার হচ্ছে। তার পরেও ছেলে মেয়ে কিংবা স্ত্রী কেউ আসেনি লাশের পাশে। এ যেন এক পশুপাখির মৃত দেহ।

বুধবার (৩ জুন) ফজরের নামাজের পর থেকেই এমন দৃশ্য দেখা গেল মিরসরাই উপজেলার ওচমানপুর ইউনিয়নের সাহেবপুর গ্রামের কালা বক্স বাড়ির উঠোনে।

তিনি কালা বক্সের বাড়ির সালেহ আহাম্মদ। মারা যান চট্টগ্রাম শহরে। মরদেহ গ্রামে নিয়ে আসেন তার ভাই নুর আহম্মদ। কিন্তু পরিবারের সদস্যরা, আত্মীয়স্বজন, গ্রামবাসী কেউ এগিয়ে আসেনি।

শেষপর্যন্ত এগিয়ে এলো ‘শেষ বিদায়ের বন্ধু’ নামে একটি সংগঠন। করোনা পরিস্থিতিতে গঠিত এই সংগঠনের সদস্যরা সালেহ আহম্মদের কাফন দাফন সম্পন্ন করেছেন।
 
জানা গেছে, মিরসরাই উপজেলার ৫নং ওচমানপুর ইউনিয়নের সাহেবপুর গ্রামের কালা মিয়ার বাড়ির সালেহ আহম্মদ দীর্ঘদিন কুয়েতে থাকার পর করে ২বছর আগে দেশে এসে চট্টগ্রাম শহরে পরিবার নিয়ে থাকেন। গত কয়েকদিন ধরে তাঁর জ্বর কাশি ছিল। এরমধ্যে তাঁর ভাইয়ের ছেলের পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। সবাই ওই নবজাতককে নিয়ে হাসপাতালে ব্যস্ত ছিল। বাসার মধ্যে একা ছিলেন তিনি। মঙ্গলবার রাত ৩টায় তিনি মারা যান। ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনে ছুটে গেছেন আরেক ভাই নুর আহম্মদ। স্ত্রী, ভাতিজারা কেউ লাশের সাথে গ্রামের বাড়ি যেতে রাজি হননি। বুধবার ভোরে এ্যম্বুল্যান্স যোগে ভাইয়ের লাশ নিয়ে একাই শহর থেকে আসলেন নুর আহম্মদ। গ্রামে আসার পর পড়েন বড় বিপত্তিতে, লাশের সাথে পরিবারের কোন সদস্য না আসায় বাড়ির কোন লোকও এগিয়ে আসছেনা। গ্রামবাসী তো এগিয়ে আসা দুরের কথা, উল্টো গ্রামে লাশ দাফন করতে বাঁধা দিচ্ছে। নুর আহম্মদ পাগলের মত এদিক ওদিক ছুটাছুটি করছে কিন্তু কেউ এগিয়ে আসছে না। এভাবে কেটে গেল পুরোদিন। এরমধ্যে বৃষ্টিতে ভিজেছে সালেহ আহম্মদের নিথর দেহ! পরে বিকেলে খবর পেয়ে ছুটে যান ‘শেষ বিদায়ের বন্ধু’ সংগঠনের সদস্যরা। লাশের গোসল, কাফন ও দাফন সম্পন্ন করেন তারা।

জানতে চাইলে ওচমানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মফিজুল হক জানান, বুধবার ভোরে একটি এ্যম্বুল্যান্স যোগে সালেহ আহম্মদের লাশ বাড়ি নিয়ে আসেন তার ভাই। লাশের সাথে স্ত্রী সন্তান কেউ না আসায় এলাকাবাসী আতংকিত হয়ে যান। এজন্য কেউ পাশে যায়নি। তিনি জানান, সালেহ আহম্মদ প্রবাসে থাকতে দুবার স্ট্রোক করেছিলেন।

শেষ বিদায়ের বন্ধু সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান সমন্বয়কারী সাংবাদিক নুরুল আলম জানান, ওচমানপুর ইউনিয়নের সাহেবপুর গ্রামের সালেহ আম্মদের লাশ পড়ে থাকার খবর আসে। এরপর আমাদের সংগঠনের ওচমানপুর ইউনিয়নের সদস্যরা দ্রুত গিয়ে লাশের গোসল, কাফন দাফন সম্পন্ন করেছেন। তিনি আরো জানান, করোনা মহামারির সময়েই আমরা এই সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছি। সংগঠনটির কার্যক্রমের মূলে রয়েছে কোনো লোক মারা গেলে তাদের কাফন দাফন সম্পন্ন করা। এ ক্ষেত্রে তাদের খবর দিলেই সংগঠনটির সদস্যরা উপস্থিত হয়ে নিজ খরচায় সব দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন।

তিস্তা নদী থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নানা প্রজাতির মাছ!

তিস্তা নদী থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নানা প্রজাতির মাছ!




মোঃ হাবিবুর রহমান শাকিল ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধি:


মাছে-ভাতে বাঙালি, কথাটি এখন তাৎপর্য হারিয়ে ফেলেছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায় দেশি প্রজাতির মাছ এখন বিলুপ্তির ডিমলার  অধিকাংশ খাল-বিল ও নদ-নদীসহ মুক্ত জলাশয়গুলো মাছশূন্য হয়ে পড়েছে।

তিস্তা নদী সহ ছোট-বড় খাল। আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে পানি শুকিয়ে যাওয়ার ফলে দেশি প্রজাতির মাছ কমে গেছে।

এরই মধ্যে ডিমলা উপজেলা থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে সরপুঁটি, তিতপুঁটি, টেংরা, চান্দা, কই, শিং, মাগুর, শৈল, গজার, বোয়াল, বাইম, পাঙ্গাশ, বাইলা, বেদা, কুলি, টাকি, হাইটা, বাটা, ছোয়াইচা, আউর, হআইলা ও চিতলসহ দেশি প্রজাতির বিভিন্ন মাছ।
প্রয়োজনের তুলনায় দ্বিগুণ ঘাটতির কারণে বাজারে এসব মাছের সরবরাহও কম। যা পাওয়া যায়, দাম চড়া। নিম্ন আয়ের মানুষের খাদ্যতালিকায় এ মাছ তাই আর থাকে না।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ডিমলা ও শুটিবাড়ীর মাছ বাজারসহ, বিভিন্ন বাজারে রুই, কাতলা ও মৃগেলসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ পাওয়া যায়। তবে দেশি মাছ তেমন একটা চোখে পড়েনি। দু’একটি বাজারে পাওয়া গেলেও দাম চড়া।

স্থানীয় লোকজন জানান, দুই দশক আগেও জেলার বিভিন্ন নদী, খাল-বিল ও বিল-জলাশয় দেশি মাছে ভরপুর ছিল। কালের বিবর্তনে এসব জলাশয় ভরাট হয়ে শুকনো মৌসুমে পানিশূন্য হয়ে যায়। প্রাকৃতিকভাবে বংশবিস্তার করতে না পারায় দেশি প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া বর্ষাকালে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে খালে জাল দিয়ে রেণু পোনা ও ডিমওয়ালা মা মাছ ধরার কারণেও এ সর্বনাশ দেখা দিয়েছে। তারা আরো বলেন, অর্থলোভি মাছ শিকারিরা কারেন্ট জাল দিয়ে আইন অমান্য করে অবাধে রেণু পোনা ও ডিমওয়ালা মাছ ধরছে। এতে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পরবর্তী বংশবিস্তার শূন্যের কোঠায় এসে ঠেকেছে। ধীরেন্দ্রনাথ রায় জানান, বিশেষ করে মাছ ডিম ছাড়ার সময় এবং বর্ষাকালে রেণু পোনা ধরা সম্পূর্ণ নিষেধ থাকলেও তা কেউ মানছে না। এছাড়া বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার কারণে এসব মাছের অনেক প্রজাতি এখন আর চোখে পড়ে না।

হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির শাশুড়ি আয়েশা খাতুনের ইন্তেকাল বিভিন্ন মহলের শোক

হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির শাশুড়ি আয়েশা খাতুনের ইন্তেকাল বিভিন্ন মহলের শোক



 দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এর শাশুড়ী শহরের চাতড়াপাড়া (কুঠিবাড়ী) নিবাসী আয়েশা খাতুন (৭৬) বার্ধক্য জনিত কারনে ৩ জুন বুধবার আনুমানিক ৪.৪৩ মিনিটে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। তিনি ২ ছেলে ৪ মেয়ে, নাতী-নাতনি সহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছে। মরহুমা আয়েশা খাতুনের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন দিনাজপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইমদাদ সরকার, দিনাজপুর জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক মোঃ নাসিরুল হক রুস্তম, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ বকসী বাচ্চু, সাধারন সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল, সাবেক সভাপতি চিত্ত ঘোষ, শহর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রায়হান কবীর সোহাগ, সাধারন সম্পাদক খালেকুজ্জামান রাজু, এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ শিবেস সরকার, পরিচালক ডাঃ নির্মল চন্দ্র সেন, দিনাজপুর জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুলতানা বুলবুল, সাধারন সম্পাদক তারিকুন বেগম লাবুন, এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ এর উপাধ্যক্ষ ডাঃ নাদির হোসেন, সহযোগি অধ্যাপক ডাঃ নুরুজ্জামান, শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ মশিউর রহমান, শহর মহিলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক খ্রীষ্টীনা লাভলি দাস, যুগ্ম আহবায়ক সেহেলী আকতার ছবি, আওয়ামীলীগ, শহর ও কোতয়ালী আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ, যুব মহিলা লীগসহ রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

মোংলায় চিংড়ি চাষীদের মৌলিক কোর্সের কারিগরী প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

মোংলায় চিংড়ি চাষীদের   মৌলিক কোর্সের কারিগরী প্রশিক্ষণ  উদ্বোধন



মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা   
 মোংলায় ক্লাস্টার ভিত্তিক চিংড়ি চাষীদের তিনদিন ব্যাপী মৌলিক কারিগরী প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধন ৩ জুন বুধবার সকালে চাঁদপাই ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চাঁদপাই ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা মোঃ তারিকুল ইসলাম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ রাহাত মান্নান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মৎস্য কর্মকর্তা এবং বায়োকেমিষ্ট গলদা চিংড়ি হ্যাচারি ( সাতক্ষীরা )  সানজিদা হক ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাংবাদিক মোঃ নূর আলম শেখ। প্রশিক্ষন কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা এ জেড এম তৌহিদুর রহমান। প্রশিক্ষণ কোর্সে ক্লাস্টার ভিত্তিক ২৫জন চিংড়ি চাষী অংশগ্রহণ করেন। অন্যদিকে ৩ জুন বুধবার বিকেলে মোংলার পশুর নদীতে অভিযান চালিয়ে অবৈধ ভাবে মৎস্য আহরণ করায় ২০ হাজার মিটার নেট জাল জব্দ করে পুড়িয়ে দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। এসময় ১০ হাজার চিংড়ি পোনা মোংলা নদীতে অবমুক্ত করা হয়। উল্ল্যেখ্য সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পশুর নদীতে মৎস আহরণ করায় ভ্রাম্যমান আদালত এ অভিযান পরিচালনা করে। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট মোংলার সহকারি কমিশনার ( ভূমি ) নয়ন কুমার রাজবংশী। এসময় উপজেলা সিনিয়র মৎস্য মৎস্য কর্মকর্তা এ জেড এম তৌহিদুর রহমান ও পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন.

অভয়নগরে খেলতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিশু জমজ দুই ভাইয়ের মৃত্যু

অভয়নগরে খেলতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিশু জমজ দুই ভাইয়ের মৃত্যু



মোঃ দেলোয়ার হোসেন , অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : 

অভয়নগরের পল্লীতে খেলা করতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই বছর বয়সী শিশু জমজ দুই ভাইয়ের (সহোদর) মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (৩জুন) দুপুরে উপজেলার সিদ্দিপাশা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের সিদ্দিপাশা গ্রামে নির্মম এই মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। পানিতে ডুবে যাওয়ায় মৃত হাসান ও হুসেইন সিদ্দিপাশা গ্রােেমর আবদুল মাজেদ শেখের ছেলে। আবদুল মাজেদ শেখের ভাই স্থানীয় ইউপি সদস্য শেখ হাফিজুর রহমান জানান, প্রতিদিনের ন্যায় বাড়ির পাশে খেলা করছিল হাসান ও হুসেইন নামের দুই জমজ ভাই। বুধবার দুপুর বেলায় দুই ছেলেকে না পেয়ে তাদের মা খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। এক পর্যায়ে বাড়ির পাশে ডোবার মধ্যে দুই ছেলেকে ভাসতে দেখে প্রতিবেশীদের খবর দেন। প্রতিবেশীরা দ্রুত তাদের পানি থেকে উদ্ধার করে নিকটস্থ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের দুইজনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। জমজ দুই ভাইয়ের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম বলেন, দুই বছর বয়সী সহোদরের মৃত্যুর সংবাদ পেয়েছি। থানায় অপমৃত্য মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োপযোগী পদক্ষেপে এ দেশ থেকে করোনাভাইরাস খুব দ্রুতই বিদায় নিবে ইনশাআল্লাহ - এমপি জুঁই

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োপযোগী পদক্ষেপে এ দেশ থেকে করোনাভাইরাস খুব দ্রুতই বিদায় নিবে ইনশাআল্লাহ - এমপি জুঁই



 
দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ করোনা দূর্যোগ আমাদের কাছে একটি নতুন অভিজ্ঞতা। বিষয়টিতে হতবিহবল হয়ে পড়েছে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের মানুষ।  আল্লাহর রহমতে পৃথিবীর অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশের অবস্থা তুলনামূলক ভালো। আমরা সবাই একটা যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছি। করোনা পৃথিবী থেকে কবে বিদায় হবে জানি না, তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োপযোগী পদক্ষেপে এ দেশ থেকে করোনাভাইরাস খুব দ্রুতই বিদায় নিবে ইনশাআল্লাহ। আমাদের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে। বাইরে ঘুরলেই আপনি বীর পুরুষ হয়ে যাবেন না। তাই বাহাদুরি দেখাতে অপ্রয়োজনে বাইরে ঘোরাঘুরি বন্ধ করে ঘরে থাকুন। কারণ আপনি বাইরে ঘুরে করোনা ভাইরাস ঘরে নিয়ে আসবেন আর সে ভাইরাসে সংক্রমিত হবে আপনার আপনজন। আপনজন কে বাচাঁতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিরাপদে থাকুন। 
৩ জুন বুধবার সকালে দিনাজপুর জেলা ও দায়রা জজ’র অফিস কক্ষে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই দিনাজপুর জেলা জজ আদালত জামে মসজিদে অনুদান প্রদানকালে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
তিনি আরো বলেন, আমি আমার বাবার পথ ধরে রাজনীতিতে এসেছি। দেশরত্ন  শেখ হাসিনার আশির্বাদে আজ আমি সংসদ সদস্য। আমি ছোটবেলায় আমার বাবা দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এ্যাড. আজিজুল ইসলামের সাথে দিনাজপুরের বার লাইব্রেরী তথা আদালত অঙ্গনে আসতে শুরু করি। আর তখন থেকেই আদালতের মসজিদটি জরাজীর্ণ অবস্থায় দেখতাম। কি অবস্থায় সবাই কষ্ট করে নামাজ আদায় করে, তা আমি সব সময় প্রত্যক্ষ করেছি। সেজন্য আমার চিন্তা আসে- মসজিদটির উন্নয়ন করা প্রয়োজন। তাই জেলা জজ সাহেবের মাধ্যমে আমি আমার ব্যাক্তিগত বরাদ্দ হতে ৮ লাখ টাকা অনুদান প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। এটি দিয়ে মসজিদের উন্নয়ন ও সোলার লাইট সংযুক্ত করে আদালত প্রাঙ্গন আলোকিত করার ব্যবস্থা করা হবে। 

করোনা পরিস্থিতির কারনে নির্দিষ্ট সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে প্রাথমিকভাবে ২ লাখ টাকা অনুদানের চেক হস্তান্তর করা হয়। এভাবে পর্যায়ক্রমে ঘোষিত ৮ লাখ টাকা প্রদান করা হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভূঁঞা, স্পেশাল জজ মোঃ মাহমুদুল করিম,  নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের জজ শরীফ উদ্দীন আহমদ, জেলা জজ আদালতের পিপি এ্যাড. রবিউল ইসলাম রবি, চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আয়েজ উদ্দিন, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আনোয়ারুল হক, অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট বিশ্বনাথ মন্ডল, যুগ্ম জজ এ. এস. এম তাসকিনুল হক, মোঃ রাজু আহমদ ও আব্দুল মালেক, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ইসমাঈল হোসেনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের বিচারকবৃন্দ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, প্রবীণ আইনজীবী এ্যাড. মোঃ খলিলুর রহমান, এ্যাড. মোস্তফা কামাল (২) প্রমূখ। শেষে করোনা পরিস্থিতির উত্তরনের জন্য বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবীর করোনায় নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও আক্রান্তদের দ্রুত আরোগ্যসহ এ দূর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের দূর্ভোগ লাঘবে বিশেষ মুনাজাত করা হয়।

দিনাজপুরের ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে করোনা দূর্যোগকালিন স্বেচ্ছাসেবী টিমের মত বিনিময় অনুষ্ঠিত

দিনাজপুরের ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে করোনা দূর্যোগকালিন স্বেচ্ছাসেবী টিমের মত বিনিময় অনুষ্ঠিত




প্রতিনিধি দিনাজপুর :করোনা ভাইরাস মহামারীর সংক্রমন প্রতিরোধে সামাজিক সচেনতার বিকল্প নেই উল্লেখ করে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করেছেন “করোনা র্দূযোগকালিন স্বেচ্ছাসেবা টিম দিনাজপুর“।
দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে করোনা দূর্যোগকালিন স্বেচ্ছাসেবা টিম দিনাজপুরের সাথে সাংবাদিকদের মত বিনিময় অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন,করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুরুত্ব তৈরী এবং মাস্ক ও স্যানিটাইজারের ব্যবহার বৃদ্ধির জন্যে এলাকাভিত্তিক মসজিদ,মন্দির,গীর্জা,হাট-বাজার, ফেরিঘাট-ষ্টেশন ও বাসষ্ট্যান্ডে মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধিতে সবাইকে এক সাথে কাজ করতে হবে। 
এজন্যে প্রয়োজনে তারা প্রত্যেক পাড়া-মহল্লাসহ বিভিন্ন স্থানে প্রয়োজন ভিত্তিক বয়স্ক এবং যুবকদের সম্বনয়ের মাধ্যমে সেচ্ছাসেবী করোনা দূর্যোগকালিন স্বেচ্ছাসেবা টিমের কমিটি গঠন করার মাধ্যমে মানুষের জীবন বাঁচাতে কাজ করার উপর গুরুত্বারোপ করে বক্তব্য রাখেন।
সভায় করোনা মহামারী প্রতিরোধে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার শ্লোগান ধরে বেশী বেশী নমুনা পরীক্ষা করার উপর গুরুত্বারোপ করে বক্তারা বলেন যত বেশী নমুনা পরিক্ষা সংক্রমনরোধে তত কার্য্যকর পদক্ষেপ। এজন্যে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয়েও করোনা পরীক্ষাকেন্দ্র স্থাপনসহ  দিনাজপুর,পঞ্চগড়,ঠাকুরগাঁও ও নিলফামারীসহ চার(০৪) জেলার জন্য প্রয়োজনে বিভিন্ন স্থানে আরো পরীক্ষা কেন্দ্র স্থাপনের দাবী করেন বক্তারা। 
সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক মাহমুদুল হাসান মানিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সময় টিভির দিনাজপুর প্রতিনিধি গোলাম নবী দুলাল,দৈনিক উত্তর বাংলার বার্তা সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক, দৈনিক উত্তরার বার্তা সম্পাদক ইদ্রীস আলী, ইন্ডিপেনন্ডেট টিভির দিনাজপুর প্রতিনিধি সালাহ উদ্দীন আহম্মেদ,ডেইলী ষ্টারের দিনাজপুর প্রতিনিধি কংকন কর্মকার,বৈশাখী টিভির দিনাজপুর প্রতিনিধি একরাম হোসেন তালুকদার, এশিয়ান টিভির দিনাজপুর প্রতিনিধি রফিকুল ইসলাম ফুলাল। 
এছাড়াও মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন করোনা দূর্যোগকালিন টীম সেচ্ছাসেবী সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাড.মেহেরুল ইসলাম,সদস্য সচিব রেজাউর রহমান রেজু,সদস্য শহিদুল্লাহ্ শহিদুল,বদিউজ্জামান বাদল ও হবিবর রহমান প্রমুখ।

দিনাজপুরে নতুন ২৪ জনসহ মোট করোনায় আক্রান্ত ২৫৫

দিনাজপুরে  নতুন ২৪ জনসহ মোট করোনায়  আক্রান্ত ২৫৫




দিনাজপুর প্রতিনিধি :দিনাজপুরে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আরো ২৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগি শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত হলেন ২৫৫ জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে দিনাজপুর সদর উপজেলায় ১০ জন, বিরামপুরে ৬ জন, চিরিরবন্দরে ৪ জন, বীরগঞ্জে দুইজন, খানসামায় একজন ও বিরল উপজেলায় একজন। এছাড়া একজন নারীর মৃত্যু হয়েছে ও বীরগঞ্জ উপজেলায় ৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন।
দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুল কুদ্দুস মঙ্গলবার (২ জুন) রাত ৯টায় গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নতুন আরো ২৪ জন করোনায় আক্রান্তের খবরটি নিশ্চিত করেছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত রোগির সংখ্যা দাড়ালো ২৫৫ জনে। এ সময়ে চিরিরবন্দর উপজেলায় একজন নারীর মৃত্যু হয়েছে ও বীরগঞ্জ উপজেলায় ৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন।  
সিভিল সার্জন জানান, গত ৩ দিন আগে চিরিরবন্দরের ওই নারীর দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর তার নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠানো হলে আজ তার ফলাফল করোনা পজিটিভ আসে।
তিনি জানান, আক্রান্ত ২৫৫ জনের মধ্যে রয়েছে সদর উপজেলায় ৬৪ জন (মৃত একজনসহ), কাহারোলে ১২ জন, বিরলে ৩০ জন, বোচাগঞ্জে ৯ জন, পার্বতীপুরে ১৪ জন, ফুলবাড়ীতে ৮ জন, নবাবগঞ্জে ২১ জন, হাকিমপুরে ৪ জন, খানসামায় ৯ জন, বিরামপুরে ২৭ জন, ঘোড়াঘাটে ২৬ জন, চিরিরবন্দরে ১৬ জন (মৃত একজনসহ) ও বীরগঞ্জ উপজেলায় ১৩ জন।  
তিনি জানান, গত ২৪ ঘন্টায় বীরগঞ্জ উপজেলায় ৩ জনসহ এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন ৫৫ জন। বর্তমানে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ১৬০ জন, প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রয়েছেন ২৮ জন, হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ১০ জন ও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। 
সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস আরো জানান, মঙ্গলবার ২ জুন দিনাজপুর ল্যাব হতে ১৬৬টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ২৪টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ, দুইটি নমুনার ফলাফল ফলোআপ পজিটিভ ও বাকী ১৪০টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। এ নিয়ে দিনাজপুর জেলায় মোট করোনায় (কোভিট-১৯) প্রমানিত রোগির সংখ্যা দাড়ালো ২৫৫ জন। এছাড়া মঙ্গলবার ১৪৬টি নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। আর গত ২৪ ঘন্টায় ২৫৯ জনসহ বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ২২৮৮ জন।

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার ৮ পুলিশ সদস্য সহ আরোও ১৪ জনের করোনা শনাক্ত

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার ৮ পুলিশ সদস্য সহ আরোও ১৪ জনের করোনা শনাক্ত







 মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধি:

বেলকুচি থানার ৮ পুলিশ সদস্য সহ আরোও ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এই নিয়ে জেলায় করোনা আক্রায় রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ৭২ জনে।
বুধবার (৩ জুন) দুপুরে সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন অফিসের পরিসংখ্যানবীদ মোঃ হুমায়ন কবীর জানান, সিরাজগঞ্জ শহীদ এম.মনসুর আলী মেডিকাল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে ৯৪ জনের নমুনা টেস্টের রিপোর্ট পাওয়া যায়। এর মধ্যে নমুনা টেস্টের রিপোর্টে ৮০ জনের নেগেটিভ এবং ১৪ জনের পজেটিভ এসেছে। নতুন নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ১০ জনই তাঁত সমৃদ্ধ বেলকুচি উপজেলায়। এর মধ্যে ৮ জন বেলকুচি থানা কনস্টেব। বাকী ৪ জনের মধ্যে চৌহালী উপজেলার ২ জন, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ১ জন ও কামারখন্দ উপজেলার ১ জন রয়েছেন।
জেলায় সর্বমোট করোনা রোগীর সংখ্যা হলো ৭২ জন। এর মধ্যে এর আগে মারা গেছেন ২ জন ও সুস্থ্য হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন ৮ জন। করোনায় মৃত ২ জনের বাড়ীর বেলকুচি উপজেলায়। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৬২ জন।
গত ২৪ ঘন্টায় সিরাজগঞ্জ জেলায় নতুন করে কোন ব্যাক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়নি এবং হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যাক্তিদের মধ্যে সুস্থ্যতার ছাড়পত্র পেয়েছেন ৩১ জন। জেলায় সবমোর্ট হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয় ৩ হাজার ৯৩০ জন এবং এদের মধ্যে সুস্থ্য হয়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৩ হাজার ৬৩৭ জন।

কুয়েতে করোনা ভাইরাসে নতুন আক্রান্ত ৭১০ জন নতুন মৃত্যু ৫ জন

কুয়েতে করোনা ভাইরাসে নতুন আক্রান্ত ৭১০ জন নতুন মৃত্যু ৫ জন




দাইয়ানুর রহমান মিষ্টারনুর কুয়েত প্রতিনিধিঃ

কুয়েতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, আজ করোনা ভাইরাসে আরো ৭১০ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন বলে শনাক্ত করা হয়েছে।
এ পর্যন্ত কুয়েতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯৩৫৯ জনে, চিকিৎসাধীন ১৩৩৭৯ জন, সুস্থতা লাভ করেছেন ১৫৭৫০ জন ও বর্তমানে সংকটপূর্ণ অবস্থা ১৯১ জন।

আজ নতুন করে  ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।
এনিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ২৩০ জনের। 

গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত বিভিন্ন দেশের নাগরিক।
ভারতীয় নাগরিক - ১৪৩ জন
স্থানীয় নাগরিক- ২৫৬ জন
মিশরীয় নাগরিক - ৯১ জন
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশী আজ নতুন করে আরো ৯৩ জন সহ শনাক্ত মোট ৩২০৪ জন''।
বাকিরা অন্যান্য দেশের।

 ৫ প্রদেশে আক্রান্তদের সংখ্যা।
ফারওয়ানিয়া - ২৮২ জন
আহমদি - ১৩০ জন
হাওয়াল্লী - ৮৮ জন
জাহরা - ১৪০ জন
রাজধানী শহর - ৭০ জন

আবাসিক এলাকায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত।
 জিলিব আল-সুয়েখ - ৮২ জন
আল ওয়াহা - ৩৬ জন
ফারওয়ানিয়া - ৭৩ জন
খাইতান- ৪১ জন
সালমিয়া- ২৮ জন
সাদ আল-আব্দুল্লাহ- ২৮ জন
এছাড়াও দেশটির তিনটি জায়গায় যথাক্রমে, জওয়ান রেসর্ট,খাইরান রেসর্ট ও আল-কুত বিচ্ হোটেলসহ আরো বেশ কয়েকটি ক্যাম্পে ২৩ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

বর্তমানে কুয়েতে ''জরুরী অবস্থা'' চলছে।
সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করতে নির্দেশ এবং খুব বেশি প্রয়োজন ব্যতীত ঘরের বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকতে নিষেধ করেছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

কুয়েতের সর্বত্রে (৩১ মে থেকে তিন সপ্তাহ) সন্ধ্যা ৬ টা থেকে সকাল ৬ টা পর্যন্ত ( ১২ ঘণ্টার কারফিউ)
উল্লেখ্য,  মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে কুয়েতের সর্বত্রে চলছে লকডাউন ও কারফিউ।
প্রায় তিন মাস পর ৩১ মে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধীরে ধীরে দেশটি স্বাভাবিক কাজকর্মে ফেরার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
*অন্যদিকে* মাহবুলা,জিলিব,ফারওয়ানিয়া, খাইতান ও হাওয়াল্লী এলাকায় টোটাল লকডাউন।
তবে টোটাল লকডাউন এলাকার কিছু সংখ্যক স্ট্রিট ও ব্লককে এর আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। 

টোটাল লকডাউন এর আওতার বাইরে নিম্নের ব্লক ও স্ট্রিট গুলো।
ফারওয়ানিয়া, স্ট্রিট নং- ৬০.১২০.৫২০ ও ১২৯।
খাইতান, ব্লক নং- ৪.৬.৭.৮ ও ৯

সূত্র, আরব টাইমস

নওগাঁয় আত্রাই প্রেসক্লাবের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

নওগাঁয় আত্রাই প্রেসক্লাবের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত




মোঃ ফিরোজ হোসাইন
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর আত্রাই
 প্রেসক্লাবের মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকালে প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। আত্রাই প্রেসক্লাব সভাপতি মোঃ রুহুল আমীন এর  সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাজমুল হোসেন সেন্টুর সঞ্চালনায় এ সভায় বক্তব্যদেন সহ-সভাপতি ছাবেদ আলী ও তপন কুমার সরকার , যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফিরোজ হোসেন, প্রচার সম্পাদক এমরান মাহমুদ প্রত্যয়, নির্বাহী সদস্য আব্দুর রহমান রিজভী ও আবু হেনা মোস্তফা কামাল, এম এ হেলাল,মোঃ সোহেল আরমান, মোঃ খালিদ বিন ফিরোজ প্রমূখ।

ব্রাহ্মণপাড়ায় মনোহরপুর গ্রামের প্রবাসী মনির ও তার পরিবারকে প্রাণ নাশের হুমকি

ব্রাহ্মণপাড়ায় মনোহরপুর গ্রামের প্রবাসী মনির  ও তার পরিবারকে প্রাণ নাশের হুমকি



মারুফ হোসেন- কুমিল্লা সংবাদদাতাঃ 

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মালাপাড়া ইউনিয়নের মনোহর পুর গ্রামের সৌদি প্রবাসী মোঃ মনির পিতা-মৃত আব্দুর রাজ্জাক ও তার পরিবারকে কে প্রাননাশের হুমকি দিয়েছে। 

মোঃ মনির এর বড় ভাই মোঃ মোস্তফা (৪৯)বাদী হয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।তিনি বলেন আমার ভাই প্রবাসে থাকে দীর্ঘ যাবৎ।  কিন্তু জায়গা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিবাদী ১) আবু কাউছার(২৪) পিতা-মোঃ সফিক ২) আবুল কালাম (৩৫) পিতা মৃত-সোলেমান খলিফা আমার ভাইকে জনপ্রিয় সোস্যাল মিডিয়া ফেইসবুকের মাধ্যমে ও ফোন করে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। তার ফোন রেকর্ডিং আমি সংগ্রহ করে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছি। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের জায়গা সম্পদ নিয়ে কোর্টে মামলা চলছে।শুধু তাই নয় আমাদের বাড়ির সামনে মল-মুত্র ফেলে আমাদের পরিবেশ নষ্ট করছে। আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। আমাদের বাড়িতে আক্রমণ করেছে। শান্তিতে ঘুমাতে পারছি না।                      

মোস্তফা আরাে জানায়, তাদের বাড়ির সামনে পুকুরে বিষ প্রয়োগে বিবাদী গন তাদের লক্ষ টাকার মাছ মেরে ফেলে। শুধু তাই নয় নিজস্ব বাড়ির জায়গায় ঘর তুলতে দিচ্ছে না বরং জোর করে বিবাদী গন ঘর তোলার সরঞ্জাম কিনে ঘর তুলতে চাচ্ছে। তিনি বলেন আবু কাউছার, আবুল কালাম (বিবাদী) উশৃংখল প্রকৃতির, মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকাসক্ত থাকে সবসময়। সমাজ ধ্বংসের মূল হোতা। শুধু তাই নয় সরজমিনে সাংবাদিক মারুফ হোসেন মূল বিষয় জানতে গেলে তার উপর হামলার পরিকল্পনা করে। এ বিষয় নিয়ে মোঃ আজাদ (ইউপি চেয়ারম্যানের) সাথে কথা বলার সময় তিনি বলেন সাংবাদিকের উপর আক্রমণাত্মক বিষয়টা  সঠিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।                                                      

মোঃ মোস্তফা বলেন আমার বাবাকে ও তারা পানিতে ডুবিয়ে মেরেছে আমরা যখন ছোট ছিলাম এমনই কিছু তথ্য তারা এখন প্রকাশ করেছে। আমরা আমাদের বাবার হত্যার বিচার চাই। তারা এখন সব সত্য প্রকাশ করছে। আমার বাবার মতো আমার ভাইকে ও মেরে ফেলার  হুমকি দিয়েছে। মোঃ মনির সৌদি থেকে ফোন কলের মাধ্যমে গণমাধ্যম ও প্রশাসনের সহায়তায় চাচ্ছেন। তিনি বলেন বিবাদীগন আমার সহধর্মিণীকে নিয়ে অনেক বাজে কথা বলেছে। আমার মেয়েটাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে।সব ডকুমেন্টস আমার কাছে আছ।এবং বিবাদী কাউছারের বড় ভাই মোঃ বাবু (সৌদি প্রবাসী)  আমাকে ফোন করে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। সৌদি আরবে আমাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করছে।      আমাকে ফোন করে বলছে আমার পুরো পরিবার মেরে ফেলবে।  প্রশাসনের কাছে তাদের সকল রেকর্ড আমি হস্তান্তর করেছি। আমাদের পরিবারটাকে বাঁচান। প্রশাসনের সর্বোচ্চ সহয়তা  চেয়েছেন তিনি।

এ বিষয় নিয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজম উদ্দিনের এর সাথে কথা বলার সময় তিনি বলেন অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তদন্তের জন্য এস আই মোঃঃ নুরুল আমিন কে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এস আই মোঃ নুরুল আমিনের সাথে কথা বলার সময় তিনি বলেন অভিযোগ ও রেকর্ড সব আমি পেয়েছি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ সমস্যা জনিত কারণে বিলম্ব হচ্ছে। তবে শিঘ্রই তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্ত ব্যক্তি বর্গের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আত্রাই দলিল লেখক কেন্দ্রীয় দাখিল মাদ্রাসার একাডেমিক ভবনের ভিত্তি প্রস্তরের শুভ উদ্বোধন

আত্রাই দলিল লেখক কেন্দ্রীয় দাখিল মাদ্রাসার  একাডেমিক ভবনের ভিত্তি প্রস্তরের শুভ উদ্বোধন




মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর আত্রাইয়ে
 অবস্থিত ‘‘আত্রাই কেন্দ্রীয়
 দলিল লেখক  দাখিল মাদ্রাসা" এর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক প্রস্তাবিত প্রায় ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ইসলাফিল আলম একাডেমিক  ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় মাদ্রাসা চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ছানাউল ইসলাম। ভিত্তি প্রস্তর পুর্ব আলোচনা সভায় মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সভাপতি মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামাল এর সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে আলোচনা বক্তব্য রাখেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এবাদুর রহমান প্রামানিক, আত্রাই সাব-রেজিস্টার নাজমুল হাসান, আত্রাই দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব কায়েম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী গোলাম মোস্তফা বাদল, প্রচার সম্পাদক আবুল হোসেন, ঠিকাদার রেজাউল ইসলাম রেজু, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. আব্দুস ছালাম, উপ সহকারী প্রকৌশলী সুজা উদ্দিন সরদার প্রমুখ। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, বর্তমান সরকার মান সম্মত শিক্ষা প্রদানের লক্ষে দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বহুতল ভবন নির্মানের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। একটি জাতিকে সামনে এগিয়ে নিতে মান সম্মত শিক্ষা ব্যবস্থার কোন বিকল্প নাই। দেশকে এগিয়ে নিতে  প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মান সম্মত শিক্ষা প্রদানে আহবান জানানো হয়।

মিরসরাইয়ে খামারীদের মাঝে গোখাদ্য ও উপকরণ বিতরণ

মিরসরাইয়ে খামারীদের মাঝে গোখাদ্য ও উপকরণ বিতরণ




মিরসরাই প্রতিনিধি
মিরসরাইয়ে খামারীদের মধ্যে  গোখাদ্য ও উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার (৩জুন) এনএটিপি ২ প্রকল্পের আওতায় উপজেলা প্রাণীসম্পদ কার্যালয় থেকে খাদ্য ও উপকরণগুলো বিতরণ করা হয়। উপজেলার ১৬ জন খামারীকে দেয়া উপকরন গুলোর মধ্যে রয়েছে ৬ বস্তা গরুর খাদ্য, ১টি মেঞ্জার, ২ কেজি ভিটামিন, প্রয়োজনীয় কৃমিনাশক ঔষুধ, ১টি সাইনবোর্ড। এসময় উপস্থিত ছিলেন মিরসরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো.জসীম উদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিন, ভেটেরিনারি সার্জন ডা. জয়িতা বসু, প্রাণীসম্পদ সম্প্রসারন অফিসার ডা. মোহাম্মদ মিনহাজুল করিম, প্রাণীসম্পদ সম্প্রসারণ অফিসার ফরিদুল আলম।

উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শ্যামল চন্দ্র পোদ্দার জানান, গাভী পালন ও গরু হৃষ্টপুষ্ট করণে কৃষকদের উৎসাহিত করতে সরকার বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে খামারীদের সহযোগীতা দিচ্ছে। এর অংশ হিসেবে এনএটিপি প্রকল্পের আওতায় গোখাদ্য গুলো বিতরণ করা হয়। এর আগে গত ১৭ মার্চ মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১৬জন মুগরীর খামারীর মাঝে বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি প্রত্যাহার

সিরাজগঞ্জ হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি প্রত্যাহার
 


মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইয়রুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। মহাসড়কে উচ্চ আদালত কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত অবৈধ যানবাহনের বেপরোয়া চলাচল ও প্রাণহানির ঘটনায় তাকে প্রত্যাহার হয়। বুধবার সকালে হাইওয়ে পুলিশের বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ে তাকে প্রত্যাহার করা হয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাইওয়ে পুলিশ সুপার, বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের মো. শহিদুল্লাহ।  
মঙ্গলবার বিকেলে বগুড়া-নগরবাড়ি মহাসড়কে শাহজাদপুর উপজেলার সরিষাকোল নামক স্থানে পাবনা থেকে ঢাকাগামী সরকার ট্রাভেলর্সের ধাক্কায় অবৈধভাবে চলাচলরত একটি সিএনজি চালিত থ্রি-হুইলারে চাপা খায়। এতে বাবা-মা ও মেয়েসহ তিনজন প্রাণ হারান।
অবশেষে ওই ঘটনায় হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি খাইয়রুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।  
হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইরুল ইসলাম প্রত্যাহারের বিষয়টি স্বীকার করে জানান, বুধবার বিকালের মধ্যে আমি সেখানে চলে যাব।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রতারক ও নকল কসমেটিক ব্যবসায়ী আটক:

চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রতারক ও নকল কসমেটিক ব্যবসায়ী আটক:




শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
এসময় নকল কসমেটিক বিক্রির দায়ে ভোক্তা অধিকার আইনে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক জহিরুল ইসলাম। 
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার স্বরূপনগর এলাকায় একটি বাড়ি হতে প্রতারক ও নকল কসমেটিক ব্যবসায়ী সৈয়দ আলীর ছেলে আব্দুল কাদের নামে একজন কে আকট করেছে সদর থানা পুলিশ। 
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায় ৩ জুন বুধবার সদর উপজেলার স্বরূপনগর এলাকায় একটি বাড়িতে এক নারীকে কিস্তির টাকা দেওয়ার নামে আটকে রাখে আব্দুল কাদের। এসময় বিশ্বস্ত তথ্যের  ভিত্তিতে সদর থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে হাজির হন। 
পুলিশ এসে নারীকে উদ্ধার করে এবং বাড়িটিতে অভিযান চালিয়ে  বিপুল পরিমাণ নকল কসমেটিক যৌন উত্তেজক ওষুধ কয়েকটি মোবাইল ফোন ও দুইশতর অধিক  তালার চাবি জব্দ  করে সদর থানা পুলিশ। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার এসআই নাজমুল জানান তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ নারী ব্যবসার সাথে জড়িত তিনি আরও বলেনন ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে তার প্রতি আইনআনুক  ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

্সোনামসজিদ স্হলবন্দর পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক

্সোনামসজিদ স্হলবন্দর পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক



শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার অন্তর্গত সোনামসজিদ স্থলবন্দর চালু করার বিষয়ে স্থলবন্দরের সার্বিক অবস্থা সরেজমিন পরিদর্শন করেন  চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক এ জেড এম নুরুল হক।

৩ জুন বুধবার সকালে পরিদর্শন শেষে তাঁরা স্থলবন্দর কনফারেন্স রুমে কাস্টমস এবং বন্দর অপারেটর কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের সাথে বৈঠক করেন।
বৈঠকে বলা হয় ভারতীয় গাড়িচালকদের তাপমাত্রা পরীক্ষা এবং শ্রমিকদের হাত ধৌয়ার ব্যবস্থাসহ স্বাস্থ্য বিধি মেনে সীমিত আকারে খাদ্যপন্য সহ সকল প্রকার দ্রবাদি সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুট ২টা পর্যন্ত আমদানী করার বিষয়ে তাঁরা  সি এ্যান্ড এফ এর কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন।

এসসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন,পুলিশ সুপার এ এইচ এম আব্দুর রকিব,সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদ নজরুল চৌধুরি ও শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিমুল আক্তার,কাস্টমস কর্মকর্তাসহ ব্যবসায়ীরা।

 উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস পরিস্থতিতে ২৪ মার্চ,২০২০ ইং থেকে ভারতের  মহদীপুর স্থলবন্দর -সোনামসজিদ স্থলবন্দর  আন্তর্জাতিক বানিজ্য কার্যক্রম বন্ধ রয়েছিলো ৬৮দিন।অন্যথায় ২ই জুন সকল কার্যক্রম সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চালু করা হয়।

মাধবপুরে একটি পরিবার কে বাড়ি ছাড়া করতে প্রভাব শালীদের অত্যচার নির্যাতনের অভিযোগ

মাধবপুরে একটি পরিবার কে বাড়ি ছাড়া করতে প্রভাব শালীদের  অত্যচার  নির্যাতনের অভিযোগ




লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুরে জায়গা সম্পত্তির বিরোধের জের ধরে  একটি নিরীহ পরিবার কে  বাড়ি ঘর ছাড়া করতে  একটি প্রভাবশালী মহলের অত্যচার নির্যাতনে   অভিযোগ উঠেছে।  এব্যাপারে  গোপানপুর গ্রামের রাসেল মিয়া বাদী হয়ে  বুধবার (৩-জুন) সকালে থানায় একটি  লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।  অভিযোগ সুত্রে জানাযায, প্রতিবেশী আক্তার মিয়া গংরা   রাসেলের পরিবারের  দলিলকৃত ও দখলীয় জায়গা,

তাদের  দাবি করে জবর দখল করতে  চায়। সম্প্রতি  আক্তার মিয়া তার লোকজন  রাসেলের একটি ঘরে তাল ঝুলিয়ে দেয়। গত মঙরবার সন্ধ্যায় 
রাসেলের মা কুলসুমা খাতুন কে  আক্তার সহ তার লোকজন  অহেতুক গাল মন্দ করে, এর প্রতিবাদ করলে  লাটিসোটা নিয়ে আক্তার তার সহযোগীরা   ঘরে ঢুকে রাসেল ওতার মা কুলসুম বেগমের উপর হামলা করে এলোপাতাড়ি পিঠিয়ে আহত করে।  একটি মোবাইল ও কিছু টাকা  নিয়ে যায়।পরে আহতরা মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ চিকিৎসা 

নিয়েছেন। এখন তাদের বাড়ি ঘর ছেড়ে চলে যেতে হুমকি দিচ্ছে প্রভাবশালী মহলটি। রাসেল মিয়া জানান আমার পরিবার আতংকে আছি, পালিয়ে পালিযে  আছি। এব্যাপারে  মাধবপুর থানার (ওসি) ইকবাল হোসেন অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চত করে বলেন  তদন্ত করে আইনগত  ব্যবস্হা নেয়া হবে।
এব্যাপারে আক্তার মিয়া বলেন তাদের বিরোদ্ধে  আনীত অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেন রাসেলের পরিবার তাদের জায়গা দখল করে রেখেছে।

কুমিল্লার রামচন্দ্রপুরে সমাজসেবী নাজমুল হক নাজিমের পৃষ্ঠপোষকতায় সড়ক সংস্কার

কুমিল্লার রামচন্দ্রপুরে  সমাজসেবী নাজমুল হক নাজিমের পৃষ্ঠপোষকতায় সড়ক সংস্কার




শাহ আলম জাহাঙ্গীর
ব্যুরো চিফ, কুমিল্লা।

তরুন সমাজসেবী ব্যবসায়ী নাজমুল হক নাজিমের পৃষ্ঠপোষকতা ও তত্ত্বাবধানে ১৬ বছর পর কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার রামচন্দ্রপুর বাজারের মরিচবাজার থেকে
হাজি জীবন মিয়া মেম্বারের বাড়ির অদূরে
সড়কের রামচন্দ্রপুর বাজার অংশ কিছুটা সংস্কার হলো। ঐতিহ্যবাহী রামচন্দ্রপুর বাজারের পশ্চিমাংশে টিএন্ডটি সংলগ্ন
সড়কটি দীর্ঘদিন ভাঙাচোরা থাকার কারনে
যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী ছিলো।
সড়কের এই বেহাল দশার কারণে ব্যবসায়ী ও যাত্রীসাধারণ নানা দুর্ভোগ পোহাতো।
অনেক ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসায়ীরা তাদের মালামাল নিয়ে  বাজার করতে হতো। এ সংস্কারের মাধ্যমে  ব্যবসায়ী ও যাত্রীসাধারণেরর দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ কিছুটা হলেও লাঘব হবে। যাত্রীসাধারণের কষ্টের কথা ভেবে রামচন্দ্রপুরের তরুণ সমাজসেবী নাজমুল হক নাজিম নিজ অর্থায়নে এলাকার স্বেচ্ছাসেবী সংঘটন 'এক ঝাঁক পায়রা'র সদস্যদের সহযোগিতায় ঈদের আগে এই
সড়কটির কিয়দংশ মেরামত করে
 চলাচলের উপযোগী করা হলো। নাজমুল হক নাজিম  বলেন, ২০০৪ সাল থেকে দীর্ঘ ১৬ বছর গ্রামীণ এই গুরুত্ব রাস্তাটি অবহেলিত। সংস্কারের কোনো উদ্যোগ কেউ নেয়নি। এলাকার উন্নয়নের কথা ভেবে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংঘটন এক ঝাঁক পায়রা'র সদস্যদের নিয়ে রাস্তাটি সংস্কার করার উদ্যোগ গ্রহণ করি। ভবিষ্যতে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাবো। 
নারায়নগঞ্জের একটি গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রির মালিক তরুণ ব্যবসায়ী  নাজমুল হক নাজিম। তাছাড়া স্থানীয় আকাব্বরের নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শিক্ষানুরাগী মরহুম আলহাজ্ব মোহন মিয়া  সওদাগর নাজমুল হক নাজিমের পিতা। তিনি এলাকাবাসীর পক্ষে সড়কটি আশু সংস্কারের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
রাস্তা সংস্কারের কাজে যারা সহযোগিতা করেন তারা হলেন  আবদুল মজিদ কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য তরুণ ঠিকাদার ব্যবসায়ী মো. জসিম উদ্দিন, রামচন্দ্রপুর  স্থানীয় যুবলীগ নেতা সাজিদ ইলেক্ট্রনিক্সের স্বত্বাধিকারী  মো.মহসিন,  যুবলীগ নেতা অসিত বরন সরকার শঙ্কর, রামচন্দ্রপুর উত্তর  ইউনিয়ন শাখার যুবলীগের সভাপতি ব্যবসায়ী ইকবাল হোসেন সরকার,আলমগীর হোসেন,রফিকুল ইসলাম,বিল্লাল হোসেন, দেলোয়ার হোসেন দেলু, আবদুল মোমেন, মাসুদ, হেলাল, দিদার, উজ্জ্বল, গরিব হোসেন, প্রমুখ।

মোংলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাবিবুন নাহার স্বাস্থ্য সুরক্ষা কেন্দ্রের উদ্বোধন

মোংলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  হাবিবুন নাহার স্বাস্থ্য সুরক্ষা কেন্দ্রের উদ্বোধন




মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা   
 মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ জুন বুধবার সকালে বেগম হাবিবুন নাহার স্বাস্থ্য সুরক্ষা কর্ণারের উদ্বোধন করা হয়। মোংলা পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান জসিমের ব্যবস্থাপনায় স্বাস্থ্যকর্মীদের করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ এর স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমাতে এই সুরক্ষা কেন্দ্র তৈরী করা হয়। 

বুধবার সকাল ১১টায় ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিক ভাবে স্বাস্থ্য সুরক্ষা কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ রাহাত মান্নান। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুনীল কুমার বিশ্বাস, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান জসিম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জীবিতেষ বিশ্বাসসহ চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিক, নৌবাহিনী ও পুলিশের কর্মকর্তাবৃন্দ। স্বাস্থ্য সুরক্ষা কেন্দ্র নির্মানের উদ্যোক্তা শেখ কামরুজ্জামান জসিম বলেন যেহেতু স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকিতে আছে তারা বাঁচলে জনগন বাঁচবে সেই কারনে এটি নির্মান করা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বলেন এটি নির্মানের ফলে স্বাস্থ্যকর্মী এবং রুগী উভয়ই উপকৃত হবে। স্বাস্থ্য কর্ণার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপজেলা নির্বাহি অফিসার রাহাত মান্নান বলেন করোনাকালে স্বাস্থ্যকর্মী এবং মোংলাবাসীর জন্য এটি একটি চমৎকার উদ্যোগ।

রাজারহাটে হাফেজ স্বামীর ছুরির আঘাতে স্ত্রী হত্যা!

 রাজারহাটে হাফেজ স্বামীর ছুরির আঘাতে স্ত্রী হত্যা!




মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ।
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
গত ২রা জুন মঙ্গলবার
 রাতে উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের নীলেরকুটি চওড়া গ্রামে।  এ ঘটনায় পুলিশ ৩রা জুন বুধবার সকালে ঘাতককে আটক করেছে।

এলাকাবাসীরা জানান, নীলেরকুটি চওড়া গ্রামের বাশারত উল্লার কন্যা বিউটি বেগম (২৫) কে ৬ বছর আগে বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের মানাবাড়ি কালিরহাট গ্রামের আঃ মতিনের হাফেজ পুত্র হাবিবুর রহমান (২৮) এর সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে ওই হাফেজ তার স্ত্রীকে নির্যাতন করে। এরই মধ্যে তাদের কোলে এক কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। দিন দিন স্বামীর নির্যাতনের মাত্রা আরো বেড়ে যাওয়ায় বেশ কয়েকবার শালিশ বৈঠকও হয়েছিল। গত ১৫ রমজান হাফেজ হাবিবুরের নির্যাতনে বিউটি বেগম আহত হলে বাবার বাড়ির লোকজন গিয়ে তাকে নিয়ে আসে।

ঘটনার দিন ২রা জুন মঙ্গলবার রাতে বিউটি বেগম ও তার ছোট বোন বিথী বেগম (১৩) একই ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত ১১টার দিকে বিথী বেগম ঘুম থেকে উঠে বিউটি বেগমকে পাশে শুয়ে থাকতে না দেখে খোঁজাখুুঁজি শুরু করে । পরে বাড়ীর লোকজন পার্শ্ববর্তী একটি ভূট্টা ক্ষেতে গোঙ্গানির শব্দ শুনে ছুটে যায়। সেখানে বাড়ীর লোকজন বিউটি বেগমকে গলাকাটা রক্তাক্ত আহত অবস্থায় দেখতে পেয়ে তাকে দ্রুত রাজারহাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও মৃতের ছোট বোন ধারনা করে বলেন, তার স্বামী টিনের ঘরের বেড়া কেটে ঘরে ঢুকে বিদ্যুতের লাইন কেটে দিয়ে মুখ বেধে বাইরে নিয়ে গিয়ে ভুট্টা ক্ষেতে ছুরি দিয়ে গলা কেটে দেয়। ব্যাক্তিগত পারিবারিক কলহের জেরে হত্যা করতে পারে বলে তারা মনে করছেন।

খবর পেয়ে ৩রা জুন বুধবার রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রাজু সরকারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট করে।

ওই দিন সকাল ১০ ঘটিকার দিকে পুলিশ ঘাতক হাফেজ হাবিবুর রহমানকে নাজিম খান এলাকা থেকে আটক করেছে বলে পুলিশ জানায়।  লাশ ময়না তদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রাজু সরকার বলেন, থানায় হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে এবং আসামীকেও

গ্রেফতার করা হয়েছে। মোটিভ উদ্ধারে পুলিশী তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে অপরূপ বর্ষার কদমফুল

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে অপরূপ বর্ষার কদমফুল




লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে অপরূপ বর্ষার কদম ফুল, ছয় ঋতুর দেশ হিসেবে পরিচিত আমাদের বাংলাদেশ এখন আর সেই ঋতুর বৈচিত্র্যের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। অহরহই প্রকৃতিতে ব্যতিক্রম ঘটনা ঘটে চলেছে।
গ্রীষ্ম বর্ষা শীত বসন্ত শরৎ ও হেমন্ত।
এ ছয় ঋতুর নামও যেন অনেকের কাছ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে। বর্ষার আগমনের বার্তা বহনকারী কদম ফুল আষাঢ় মাসে দেখা যাওয়ার কথা 

থাকলেও জ্যৈষ্ঠতেই গাছে গাছে শোভা, পাচ্ছে সেই কদম ফুল। আমি ফুল কদম ডালে ফুটেছি বর্ষাকালে গীতি কবির এমন কথা এখন আর মিলছে না।
বর্ষার বন্দনায় আমাদের গানে কবিতায় ও শিল্প-সাহিত্যে কদম ফুল স্থান পেলেও জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়েছে তাপমাত্রারও হয়েছে পরিবর্তন। আবহাওয়ার বিরূপ প্রভাবে উদ্ভিদেরও আচরণের পরিবর্তন ঘটেছে।

তাই বর্ষার কদম ফুল দেখা যাচ্ছে জ্যৈষ্ঠ মাসে গাছের ডালে ডালে তা প্রস্ফূটিত হয়ে অপরূপ শোভা ছড়াচ্ছে। ফুলের শোভায় ও মৌ মৌ গন্ধে ফুলে অবগাহন করছে বিভিন্ন প্রজাতির কীটপতঙ্গ, মৌমাছি এবং পাখি। মাধবপুর উপজেলা বেশকিছু এলাকার গাছ ছেয়ে থাকা কদম ফুলের সৌন্দর্যে আকৃষ্ট হয়ে শিশুরা বসে নেই। তারা গাছের সে ফুল পেড়ে নিয়ে এসে খেলায় মেতে উঠছে।

মাধবপুর উপজেলা মনতলা শাহজালাল সরকারি কলেজের প্রভাষক, আকতার হোসাইন বলেন, প্রায় একযুগ ধরে এমনটি হয়ে আসছে। কারণ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়েছে। আর আবহাওয়ার বিরূপ প্রভাবে উদ্ভিদের পরিবর্তনের কারণে অসময়ে কদম ফুল ফুটছে।

এ বিষয়ে মাধবপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, আবহাওয়া ঠাণ্ডা থাকলে বা বৃষ্টি হলে কদম গাছে আগাম ফুল ফুটে। আবার একই গাছে কাছাকাছি সময়ে আগাম, সঠিক সময়ে এবং দেরিতে এই তিন দফায় কদম ফুল ফুটে থাকে।

মাধবপুরে বিজিবির অভিযানে ভারতীয় বিয়ারসহ আটক ৫ ভ্রামমান আদালতে ৬ মাসের জেল

মাধবপুরে বিজিবির অভিযানে ভারতীয় বিয়ারসহ আটক ৫ ভ্রামমান আদালতে ৬ মাসের জেল



লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

 হবিগঞ্জের মাধবপুরে মনতলা এলাকা থেকে ৫ মাদক ব্যবসায়ীকে মাদকসহ আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) আটককৃতদের ৬ মাসের জেল দিয়েছেন ভ্রামমান আদালতের বিচারক।
বিজিবি সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মনতলা বিওপির হাবিলদার মোঃ অলিউল্লাহ এর নেতৃত্বে মাধবপুর 

উপজেলার মনতলা ব্রিজের নিকট হতে বি বাড়ীয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের শাহিন মিয়া(৩০),ইসলাম খান(২৫), আরিফুল ইসলাম (২৫),মোঃ জাকির হোসেন (২৫),মোঃ নুর মিয়া (২৬) কে ৬ বোতল ভারতীয় বিয়ার, ০২টি মোটর-সাইকেল 

এবং ০৫টি মোবাইল ফোনসহ আটক করে। বিজিবি হবিগঞ্জ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল এস এন এম সামীউন্নবী চৌধুরী, পিবিজিএম, পিবিজিএমএস জানায়, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে আটককৃত আসামীদের,

মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার( ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আয়েশা আক্তার এর আদালতে হাজির করলে বিচারক ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর ১০(১)(চ) ধারা মোতাবেক ০৬ (ছয়) মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা করেন।

আটককৃত মোটর-সাইকেল ও মোবাইল ফোন আসামীদ্বয়ের অভিভাবকের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর সাহেবনগর গ্রামে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে গুরুতর আহত ৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর  সাহেবনগর গ্রামে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে গুরুতর আহত ৫




এস.এম অলিউল্লাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
 

নবীনগরে শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের সাহেবনগর গ্রামে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে গুরুতর আহত ৫ 
৫ জনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। 

আহত ব্যক্তিরা হলেন কালু মিয়া (৪২)পিতা মৃত শানু মিয়া, হাফিজ মিয়া(৫০) পিতা-মৃত ছোট মিয়া, ওবায়দুল্লাহ (৪২) পিতা-মৃত মাওলানা জলিল মিয়া এনামুল (৪২)পিতা আবুল ও
 কাউসার মিয়া (৫৫) পিতা সিদ্দিক মিয়া

নবীনগর সরকারি হাসপাতাল সূত্রে এই তথ্য জানা যায়।
ঘটনার সূত্রে জানা যায় সাহেবনগর এ ১টি বিলকে কেন্দ্র করে এই রক্ত ক্ষয় সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটে। 

বরদা বাড়ি গ্রুপ যে অংশটি সাহেবনগর পশ্চিমপাড়া হিসেবে পরিচিত ।
অপর গ্রুপটি গ্রুপটি মহিউদ্দিন বাড়ির মধ্যপাড়া গ্রুপ হিসেবে পরিচিত।

 দীর্ঘদিন যাবত এই দুই বাড়ির লোকজনের মধ্যে মারামারি হানাহানি লেগেই থাকে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় গতকাল ধরেই এই সংঘর্ষের সূত্রপাত সৃষ্টি পাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলে।

নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ নির্দেশে, 

সলিমগঞ্জ ক্যাম্পের পুলিশের উপস্থিতির কারণে  সংঘর্ষের ঘটনা সংগঠিত হতে পারেনি।

সারা রাত  পুলিশ উপস্থিতি থাকলেও ফজরের আযানের পর পুলিশ চলে আসলে দুই পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়।

 গুরুতর আহত হয়ে নবীনগর ৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসলে তাদেরকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রেরণ করা হয়েছে।

গুরুতর আহত ব্যক্তিদের বেশিরভাগই দেশীয় অস্ত্র শস্ত্রে গুরুতর আঘাত ক্ষত বিক্ষত অবস্থায় দেখা গেছে। 

আহত ব্যক্তিদের মধ্যে ওবায়দুল্লাহ ৬ কাটি চলের পুরো অংশ তার পায়ে বিদ্ধ অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। 

সংঘর্ষের ঘটনা নিয়ে নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাথে যোগাযোগ করা হলে ,

তিনি বলেন সংঘর্ষ এড়ানোর জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হয়েছে। পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আমাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল উভয় পক্ষ নিয়েছিল কিন্তু হঠাৎ করে কেন সংগঠন সেটি নিয়ে তদন্ত চলছে। 

এলাকাবাসী সূত্রে পুলিশের ফাঁকা গুলি ছোড়ার খবরও পাওয়া গেছে।
 করোনাভাইরাস ভয়াবহ পরিস্থিতির সময় এমন ঘটনায় নবীনগর উপজেলায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

রাজারহাটের রাজমাল্লীরহাট ফাজিল মাদরাসায় শিক্ষার মান নিম্নগামী,দাখিলে পাস করেছে মাত্র ৪জন

রাজারহাটের রাজমাল্লীরহাট ফাজিল মাদরাসায় শিক্ষার মান নিম্নগামী,দাখিলে পাস করেছে মাত্র ৪জন




 মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
রাজারহাটের রাজমাল্লীরহাট সিদ্দিকিয়া ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসায় শিক্ষার মান দিনদিন নিম্নগামী হচ্ছে। চলতি দাখিল পরীক্ষার ফলাফলে মাদরাসাটির ১৮জন নিয়মিত পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে মাত্র ৪ জন পরিক্ষার্থী।
জানা গেছে,উপজেলার রাজমাল্লীহাট সিদ্দিকিয়া ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসাটি ১৯৬০ইং সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে। শুরুর দিকে মাদরাসাটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যাপক সুনাম অর্জন করে। কিন্তু  দীর্ঘ প্রায় এক দশক থেকে প্রতিষ্ঠান প্রধান ও শিক্ষকদের হেয়ালিপনা ও কর্তব্যে অবহেলার কারনে মাদরাসাটির শিক্ষার মান নিম্নগামী হতে শুরু করে। কয়েক বছর ধরে এই প্রতিষ্ঠানে দাখিল,আলিম ও ফাজিল পরীক্ষায় অংশ গ্রহণকারী ও পাশের হার অত্যন্ত নাজুক। যার সঠিক হিসাব  প্রকাশ করা শিক্ষকদের জন্য লজ্জাজনক। এই মাদরাসা থেকে ২০২০ সালের দাখিল পরীক্ষায় ১৮ জন শিক্ষার্থী পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করেছিল। এরমধ্যে পাস করেছে মাত্র ৪ জন ।এক দশক থেকে কোন পরীক্ষার ফলাফলে কোন ছাত্রছাত্রী জিপিএ-৫ পাওয়ার কোন রেকর্ড নেই বলে জানা গেছে। মাদরাসার অধ্যক্ষকে  নিয়োগ বাণিজ্যে যত তৎপর দেখা  যায়  তেমন তৎপরতা দেখা যায় না মাদরাসা অবকাঠামো, শিক্ষার গুণগত মান,ছাত্রছাত্রীর উপস্থিতি, পাঠদানের উন্নয়নে । এমনকি অধ্যক্ষই নিয়মিত  মাদরাসা আসেন না। শিক্ষকরা ক্লাস ফাকি দিয়ে বাজারে ঘোরেন।তিনি  মাদরাসার অধিকাংশ   ছাত্রছাত্রীকেও চেনেন না বলে জানা গেছে।  এলাকার অনেক অভিভাবক এর অভিযোগ এই মাদরাসায় ঠিক মত ক্লাস হয় না,দুপুর হলে ছেলে-মেয়ে বাড়ি আসে,অধ্যক্ষ প্রতিষ্ঠানের সঠিক দেখভাল করেন না। তাই মাদরাসার এই অবস্থা। এই অধ্যক্ষ  ২০১৯ সালের ৫ম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষায় ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রী দিয়ে ৫ম শ্রেণীর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিয়েছিলেন । 
 এবিষয়ে অধ্যক্ষ এটিএম রফিকুল ইসলামের সাথে ফোনে কথা হলে তিনি জানান, কত জন পাস করছে জেনে বলতে হবে।  কতজন পরীক্ষা দিয়েছে তাও জানাতে পারেন নি ।

মারুফ স্পেশাল ব্যাচের সাফল্য

মারুফ স্পেশাল ব্যাচের সাফল্য



মোঃ ইকরামুল করিম সৈকত, ঝিকরগাছা (যশোর)  প্রতিনিধিঃ

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলায় মারুফ স্পেশাল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ২০২০ সালের এস.এস.সি পরীক্ষায় শতভাগ সাফল্য অর্জন করেছে। এ বছর মারুফ স্পেশাল ব্যাচ থেকে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ৪০ জন শিক্ষার্থীর সবাই কৃতকার্য হয়েছে।

মারুফ স্পেশাল ব্যাচ থেকে এস.এস.সি পরীক্ষায় ৫ জন গোল্ডেন প্লাস সহ জিপিএ-৫ পেয়েছে মোট ১০ জন।
এছাড়াও ২২ জন (এ) গ্রেড ও ৮ জন (এ-) গ্রেডে উত্তির্ন হয়েছে।

মারুফ স্পেশাল ব্যাচের পরিচালক মারুফ হোসাইন 
এ বছর এস.এস.সি পরীক্ষার্থীর শতভাগ সাফল্য অর্জন করায় আনন্দ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন লেখাপড়ার প্রতি তাদের আগ্রহ থাকায় ও পরিশ্রম করায় শতভাগ সাফল্য অর্জন সম্ভব হয়েছে। তাই আমরা যদি প্রতিটি শিক্ষার্থীর মেধা শক্তিকে বিকশিত করতে পারি তাহলে  আগামীতেও সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে।

উল্লেখ্য, মারুফ স্পেশাল ব্যাচের পরিচালক মারুফ হোসাইন তার নিজস্ব তত্তাবধানে গরিব ও অসহায় শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে শিক্ষাপ্রদান করে থাকেন।

প্রথম আলো ট্রাস্টের পক্ষ থেকে কেশবপুরে আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

প্রথম আলো ট্রাস্টের পক্ষ থেকে কেশবপুরে আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ




মোরশেদ আলম 
যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি। 

যশোরের কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ অসহায় ৫০ পরিবারের মাঝে প্রথম আলো ট্রাস্টের পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

 ত্রাণ সামগ্রী বিতরণে সহযোগিতা করে কেশবপুর ও যশোর বন্ধুসভার বন্ধুরা।
বৈশ্বিক করোনা মহামারী কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কেশবপুর খাদ্য গুদামের চত্বরে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ ৫০ পরিবারের মাঝে চাল,ডাল,আলুসহ বিভিন্ন ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ শিকারপুর গ্রামের আঃ রশিদ জানান, প্রথম আলো ট্রাস্টের এই ত্রাণ সামগ্রী পেয়ে তারা অনেক খুশি। আগামী এক সপ্তাহের খাবারে তার পরিবার ভালোভাবে চলে যাবে ৷
এসময় উপস্থিত ছিলেন, প্রথম আলো যশোর প্রতিনিধি মনিরুল ইসলাম, কেশবপুর প্রতিনিধি দিলীপ মোদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিমোহন ধর, কেশবপুর খাদ্য গুদামের প্রধান মোঃ আবুল হোসেন, দৈনিক যুগান্তরের কেশবপুর প্রতিনিধি মোঃ আজিজুর রহমান বন্ধুসভার সাবেক সভাপতি মোঃ মনিরুজ্জামান, সাবেক সহসভাপতি আঃ রউফ।

ত্রাণ বিতরণে সহযোগিতা করেন কেশবপুর বন্ধুসভার সভাপতি শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক দীপ্ত রায় চৌধুরী,সহসভাপতি জাহিদুল ইসলাম, যশোর বন্ধুসভার মোয়াজ্জেম হোসেন, সাঈদুর রহমান লিটন, মোস্তাফিজুর রহমান, মুসলিমা আক্তার মৌ, সাদিয়া শারমিন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ছয় মামলার আসামীসহ গ্রেপ্তার ২

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ছয় মামলার আসামীসহ গ্রেপ্তার ২




শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কার্যালয়ের চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে ৬ মামলার আসামী শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রনি (২৮) ও ২ মামলার আসামী আব্দুর রশিদ (২৫) কে ১০ বোতল ফেনসিডিল ও একটি এ্যাপাচি মোটরসাইকেলসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হচ্ছে, শিবগঞ্জ উপজেলার সাবেক লাভাংগা এলাকার হুমায়ুন কবিরের ছেলে রনি (২৮) ও একই এলাকার আব্দুল হাকিমের ছেলে আব্দুর রশিদ (২৫)।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আনিছুর রহমান খাঁন জানান, ১ জুন সোমবার সন্ধ্যায় পরিদর্শক রায়হান আহমেদ খাঁনের নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্স রাণীহাটি ডিগ্রী কলেজ এর গেটের সামনের রাস্তার উপর থেকে ১০ বোতল ফেনসিডিলসহ ২ জন শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় মাদক বহনে ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেলও জব্দ করা হয়।
এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় নতুন একটি মামলা দায়ের করা হয়। আসামীদের ২ জুন মঙ্গলবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। জেলায় মাদকবিরোধী অভিযান চলমান থাকবে।

আত্রাইয় লোকালয়ে হনুমান, দেখতে উৎসুক জনতার ভিড়

আত্রাইয় লোকালয়ে হনুমান, দেখতে উৎসুক জনতার ভিড়


 

মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

 নওগাঁর আত্রাইয়ে গত তিন দিন ধরে একটি হনুমান দল ছুট হয়ে লোকালয়ে চলে এসেছে। এ হনুমানটিকে দেখতে শিশু নারীসহ শত শত উৎসুক জনতা ভীড় করছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার ভবানীপুর বাজারে হনুমানটি দেখা যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হনুমানটি গত শনিবার দিবাগত রাতের যে কোন সময় দল ছুট হয়ে এ উপজেলায় চলে আসে। প্রথমে রবিবার সকালে স্থানীয় লোকজন হনুমানটিকে উপজেলার মালিপুকুর এলাকায় দেখতে পান। পরে মঙ্গলবার সকালে উপজেলার ভবানীপুর বাজারের করইগাছের একটি ডালে। হনুমানটি লাফিয়ে লাফিয়ে চলতে থাকে বাজারের বিভিন্ন দোকানের চালে ও গাছের ডালে ডালে। মুহুর্তের মধ্যে খবর ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক জনতা ভীড় জমায়। পরে হনুমানটি রাস্তা বেয়ে উত্তর দিকে চলে যেতে থাকে।

রায়পুর গ্রামের বিপ্লব কুমার বলেন, এ হনুমানটি হঠাৎ আমরা বাজারে দেখতে পায়। এবং সে এক গাছ থেকে আরেক গাছে, এক দোকান থেকে আরেক দোকানের চালে যেতে থাকে। আমরা তাকে বিরক্ত না করে খাবার দিচ্ছি।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা রুবাইত রেজা বলেন, সংবাদটি এই প্রথম আমরা শুনলাম। স্থানীয় বন বিভাগ চাইলে আমরা একসাথে হনুমানটি আটক করে যে কোন চিড়িয়াখানা বা বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কাছে হস্তাস্তর করতে পারি। তিনি এলাকার মানুষকে হনুমানটিকে উত্ত্যক্ত না করার পরামর্শও দেন। 

ঢাকায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন বাগমারার আসাদুল

ঢাকায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন বাগমারার আসাদুল




রাজশাহী ব্যুরোঃ
ক’দিন আগের কথা। পবি ক’দিন আগের কথা। পবিত্র মাহে রমজানের প্রথম রোজায় করোনা ভাইরাসের সংকটে থাকা হতদরিদ্র, গরীব, দুস্থ, অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন আসাদুল ইসলাম আসাদ। নিজ এলাকার ওই সকল মানুষের কথা ভেবে ঢাকা থেকে ছুটে আসেন নিজ গ্রামের বাড়িতে। ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্য সংকটে থাকা লোকজনের মাঝে চাল, ডাল, তেল, মিষ্টি কুমড়া
সহ বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করেন।
আসাদুল ইসলাম আসাদ রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ঝিকরা ইউনিয়নে ঝিকরা গ্রামের আলহাজ্ব মজিবর রহমানের ছেলে। দুই ভাইয়ের মধ্যে আসাদুল ইসলাম ছোট। আসাদুল ইসলাম প্রায় ৭-৮ বছর ধরে ঢাকা সুপ্রিম কোর্টের লাইব্রেরীয়ান শাখার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি এক ছেলে সন্তান নিয়ে সপরিবারে ঢাকার রায়ের বাগে থাকতেন। এলাকায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেষে কয়েক দিনের মধ্যে ঢাকায় ফিরেন আসাদুল ইসলাম।
পারিবারিক সূত্রে জানাগেছে, গত ঈদের আগে থেকে শরীরে জ্বর জ্বর ভাব ছিল তার। ঔষধ সেবনের ফলে সুস্থ হয়ে উঠেন তিনি। গত ৩-৪দিন আগে আবারও তার শরীরে জ্বরের মাত্রা বৃদ্ধি পায়।
করোনার কারনে মেডিকেলে সেভাবে যায়নি আসাদুল ইসলাম। সুস্থ হওয়ার আসায় বাসাতেই প্রাথমিক চিকিৎসা নিতেন। শরীরে জ্বর থাকার পরেও হঠাৎ করেই ৭-৮ টা কলা খেয়ে ফেলেন তিনি।
এর ফলে তার শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি দেখা দেয়। শ্বাস কষ্ট শুরু হয় আসাদুলের। এক পর্যায়ে কথা বলতে পারে না। সে সময় অফিসের গাড়িতে করে সোমবার সকালে আসাদুলকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।
চিকিৎসা শুরুর আগেই মেডিকেলের বারান্দায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আসাদুল ইসলাম।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল প্রায় ৪০ বছর। করোনা ভাইরাসের উপসর্গ থাকতে পারে বলে তাঁর লাশ ঢাকাতেই দাফনের অনুমোতি দেন পরিবারের লোকজন। আসাদুল ইসলামের পিতা ঝিকরা
ইউনিয়নে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি।

নওগাঁর পোরশায় উপজেলা আম বাজার সমিতির সভা অনুষ্ঠিত

নওগাঁর পোরশায় উপজেলা আম বাজার সমিতির সভা অনুষ্ঠিত




মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর পোরশায় নবগঠিত উপজেলা আম বাজার সমিতির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।গতকাল  মঙ্গলবার দুপুরে কাতিপুর কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ্ মঞ্জুর মোরশেদ চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন নওগাঁ জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজিবুল ইসলাম।

সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আম বাজার সমিতির সভাপতি ওবাইদুল্লাহ্ শেখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ ফজলুল হক চৌধুরী, নিতপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম শাহ্, তেতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম শাহ্, ছাওড় ইউপি চেয়ারম্যান ফখরুদ্দিন আলী আহম্মেদ, গাঙ্গুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবু বক্কার সিদ্দিক ও ঘাটনগর ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান।

আরো উপস্থিত ছিলেন আম বাজার সমিতির সহ-সভাপতি আতাউর রহমান, সম্পাদক আছাদুর রহমান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মেজবাহ্ উদ্দিন, অনলাইন আম ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বারিন্দুল এর পরিচালক আবু সাইদ শাহ্ চৌধুরী সহ আম ব্যবসায়ী এবং সমিতির সদস্য বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় আগামী বৃহস্পতিবার সরাইগাছি মোড়ে আনুষ্ঠানিকভাবে উপজেলা আম বাজার উদ্বোধনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।

নওগাঁর আত্রাইয়ে বজ্রপাতে এক ব্যক্তির মৃত্যু

নওগাঁর আত্রাইয়ে বজ্রপাতে এক ব্যক্তির মৃত্যু




মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

 নওগাঁর আত্রাইয়ে মাঠের জলাবদ্ধ পানিতে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে আব্দুর  রাজ্জাক (৪২) নামে  এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।
নিহত আব্দুর রাজ্জাক উপজেলার পার-পাঁচুপুর গ্রামের মৃত আব্দুল গণির ছেলে।
আত্রাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসলেম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গতকাল  মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে আব্দুর রাজ্জাক বাড়ির পাশে মাঠের জলাবদ্ধ পানিতে মাছ ধরতে যায়। এ সময় হঠাৎ আকাশে কালো মেঘ ও বজ্রপাত হয়। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে স্থানীয় লোকজন ঘটনাস্থল থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে।

করোনায় দুস্থদের পাশে থেকে সচেতনতায় প্রচার প্রচারণা অব্যাহত রেখেছে চেয়ারম্যান ময়নুল হক

করোনায় দুস্থদের পাশে থেকে সচেতনতায় প্রচার প্রচারণা অব্যাহত  রেখেছে চেয়ারম্যান ময়নুল হক



মোঃ হাবিবুর রহমান শাকিল ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধি: 
বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারীতে খুব বেশী প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বের হতে পারছেন না ঘর থেকে। তবে অন্যান্য দেশের চেয়ে বাংলাদেশের চিত্রটা ভিন্ন। এখানে মানুষ কর্ম না করলে তাদের পরিবারের মুখে তুলে দিতে পারে অন্য। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে উত্তরের জেলা নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা। এ উপজেলাটিতে দরিদ্র ও শ্রমজীবী মানুষের হার সবচেয়ে বেশী। যার ফলে অবহেলিত এ উপজেলার মানুষগুলো বেশীরভাগই কাজের সন্ধানে পারি দেয় দক্ষিণের বড় বড় শহরে। এখন করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পরে ওই শ্রমজীবী মানুষরা। আর এসব কর্মহীন দুস্থ মানুষের কথা বিবেচনা করে ডিমলা  উপজেলা   টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ ময়নুল হক  করোনা ভাইরাস শুরু থেকেই খাদ্য সহায়তার পাশাপাশি সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখাসহ মানুষের সচেতনতায় প্রচার - প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। এমন কি মাঝে মধ্যে তিনি শহরে মানুষের সমাগম দেখে তার সমর্থকদের সাথে নিয়ে মানুষকে ঘরমুখী করেন। তার এমন কর্মকান্ডে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সচেতনবাসি।তারা আরো জানান,         ৯নং টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নে ৬টি প্রবেশ পথের প্রত্যেকটি পয়েন্টে,
গ্রামপুলিশ ও আনসার ভি,ডি, পি দ্বারা প্রবেশকারী লোকদের জীবানুমুক্ত করার জন্য প্রত্যেক ব্যক্তির হাতে স্প্রে করা এবং মুখে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করা হচ্ছে।                  
এবিষয়ে টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ ময়নুল হক  বলেন, যে মানুষগুলোর ভোটে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি আজ তাদের বিপদে রেখে আমি ঘরে থাকতে পারি না। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে প্রচার প্রচারণাসহ আমার সাধ্যনুযায়ী পাশে থাকার চেষ্টা করছি।

মোহাম্মাদ নাসিমের করোনা থেকে মুক্তি কামনা করে দোয়া ও কোরান খতম

মোহাম্মাদ নাসিমের করোনা থেকে মুক্তি কামনা করে দোয়া ও কোরান খতম



মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে মানিকপোটল গ্রামের জামে মসজিদে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও বর্ষীয়ান নেতা মোহাম্মদ নাসিমের কোরনা থেকে মুক্তি কামনায় মঙ্গলবার বাদ জোহর বিশেষ দোয়া ও মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মিলাত মাহফিল বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন উক্ত গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষকমন্ডলী, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও অন্যান্য সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী, বিভিন্ন পেশাজীবি, সমাজসেবক ও ওলামা একরামগন। এর পূর্বে মসজিদের মাদ্রাসার কয়েকজন হাফেজের মাধ্যমে কোরআন খতম দেওয়া হয়। এছাড়াও কাজিপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদে নামাজ শেষে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও মেঘাই মদিনাতুল হাফিজা মাদ্রাসায় কোরআন খতম দেওয়া হয়। উল্লেখ্য যে, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বর্ষীয়ান এই নেতার ছেলে সাবেক সংসদ সদস্য তানভীর শাকিল জয় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
এর আগে সোমবার (১ জুন) সকালে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে রাজধানী শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে তিনি ভর্তি হন। ডা. মহিউদ্দিন আহমেদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছেন মোহাম্মদ নাসিম। হাসপতালে ভর্তির পর তার করোনাভাইরাসের পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়। পরীক্ষায় তার করোনা পজিটিভ আসে। তার এই করোনা থেকে মুক্তির জন্য কাজিপুরের সাধারণ জনগণ তথা মানিকপোটল গ্রামবাসী এই দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেন।

নাটোরের বড়াইগ্রামে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শত বার্ষিকী স্বরনে বটবৃক্ষের চারা রোপণ

নাটোরের বড়াইগ্রামে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শত বার্ষিকী স্বরনে বটবৃক্ষের চারা রোপণ



রাজশাহী ব্যুরো
   স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি , স্বাধীনতার মহানায়ক,জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী স্বরণে শতবর্ষী একটি (বটবৃক্ষ)চারা রোপন করা হয়েছে।

বড়াইগ্রাম উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে মঙ্গলবার সকালে উপজেলা চত্বরে এই শতবর্ষী বটবৃক্ষ চারাটি রোপন করা হয়। এ সময় বড়াইগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আনোয়ার পারভেজ ,উপজেলা প্রকৌশলি আব্দুর রহিম সহ গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

বটবৃক্ষ চারা রোপণ কালে বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ মোঃ সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে উপজেলা চত্বরে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী শতবর্ষী বটবৃক্ষের চারা রোপণ করেছি এজন্য যে, উপজেলা চত্বরে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রতিদিনই আসে।

একসময় বৃক্ষটি বড় হবে এবং উপজেলায় আগত মানুষগুলো বৃক্ষের ছায়ায় বসে বিশ্রাম নিতে পারবে।
তিনি আরো জানান, চারা গাছটির চারপাশে ইট দিয়ে বাঁধাই সহ টাইলস বসিয়ে দেওয়া হবে এবং এটিকে ‘বঙ্গবন্ধুর চত্বর’ ঘোষণা করা হবে।

সিংড়ায় মশক নিধন কার্যক্রম উদ্বোধন

সিংড়ায় মশক নিধন কার্যক্রম উদ্বোধন



রাজু আহমেদ, সিংড়া: 
নাটোরের সিংড়া পৌর এলাকায় মশক নিধন কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক, সিংড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো: জান্নাতুল ফেরদৌস।

তিনি মঙ্গলবার বিকেলে ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ হিসেবে এ  উদ্যোগ গ্রহন করেছেন। 

এসময় পৌর সচিব আব্দুল মতিনসহ কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


করোনার মধ্যেই মাদক ব্যবসায়ী আটক

করোনার মধ্যেই মাদক ব্যবসায়ী আটক



শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
করোনার মধ্যেই দূর্বার গতিতে চলা মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে দুটি সফল অভিযান। ১৫০০ পিস ইয়াবাসহ দুজন আটক।
        আজ দুপুরে গোমস্তাপুর থানা এলাকায় অভিযান  করে শিবগঞ্জের আসামী আজমকে ৭০০(সাতশত) পিচ ইয়াবাসহ  আটক  করেছেন এস আই জাহিদ। এবং বিকালে অপর অভিযানে নাচোল থানা এলাকায় রাজশাহীর আসামী  শ্রী প্রত্যয়কে ৮০০ (আটশত) পিস ইয়াবাসহ আটক করেন।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৪ জুন থেকে চলবে আন্তনগর কুড়িগ্রাম এক্মপ্রেস

স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৪ জুন থেকে চলবে আন্তনগর কুড়িগ্রাম এক্মপ্রেস



 মোঃইয়ামিন সরকার আকাশ।
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
করোনাভাইরাস মহামারির কারণে দুই মাসেরও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর গত রবিবার (৩১ মে) থেকে সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত দিয়েছে সরকার। সেই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার থেকে আট জোড়া ট্রেন ঢাকা থেকে বিভিন্ন রুটে ছেড়ে যায়। একই সঙ্গে বিভিন্ন স্টেশন থেকে ঢাকায়ও আসে। আর আগামীকাল বুধবার( ৩ জুন )থেকে আরও ১১ জোড়া ট্রেন চলাচল শুরু করবে বলে জানা যায় বাংলাদেশ রেলওয়ে থেকে । তবে ১১ জোড়ার মধ্যে আন্তনগর কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস আগামীকাল সাপ্তাহিক বন্ধের কারণে চলবে না । বৃহঃবার (৪ জুন )থেকে যথারীতি সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে বলে জানান কুড়িগ্রাম রেলওয়ের ষ্টেশন মাষ্টার মোঃ মোশারফ হোসেন । তিনি আরো জানান,সবধরণের সুরক্ষা ব্যবস্থা করা হয়েছে কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে পাশাপাশি সামাজিক দুরুত্বের বিষয়টিও নিশ্চিত করা হবে বলে জানান তিনি । কুড়িগ্রাম জেলা থেকে ঢাকা যাওয়ার জন্য ২২৫ টি সিটের মধ্যে অর্ধেক সিট অনলাইনে দেয়া হয়েছে,অনলাইনে টিকিট কেটে সীমিত পরিসরে চলবে আন্তনগর এই ট্রেনটি । কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে আরো জানা যায়, ৪ জুন থেকে যাত্রার শুরু ১ঘন্টা পূর্বে অর্থ্যাৎ ৭টা ১৫ মি. এর ১ ঘন্টা পূর্বে রেল স্টেশনে মাস্ক,হ্যান্ড গ্লোভস পরিহিত হয়ে উপস্থিত হতে হবে যাত্রীদের । এই ১ ঘন্টা সময় ধরে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি নজরদারি করবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ । 

এদিকে করোনা মোকাবিলায় রেলে যাত্রী পরিবহনে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কারিগরি কমিটি কয়েকটি নির্দেশনা দিয়েছে।
নির্দেশনাগুলো হচ্ছে-
১. স্টেশনগুলোতে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম সংরক্ষণ।
২. জরুরি পরিকল্পনা প্রণয়ন।
৩. বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ক্ষেত্র স্থাপন।
৪. প্রতিটি ইউনিটের জবাবদিহি নিশ্চিত করা।
৫. রেলওয়ে কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।
৬. রেলকর্মীদের স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণ ও স্বাস্থ্য বিষয়ক অবস্থা নথিভুক্ত করা।
৭. অসুস্থ অনুভবকারীদের সঠিক সময়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়া।
৮. তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণের সরঞ্জাম স্টেশনগুলোর প্রবেশপথে স্থাপন করা।
৯. স্টেশনে আগত সবার তাপমাত্রা পরীক্ষা করা।
১০. যেসব যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা ৩৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে থাকবে তাদের ওই এলাকায় অস্থায়ী কোয়ারেন্টাইনে রাখা এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবার ব্যবস্থা করা।
১১. ট্রেনে বায়ু চলাচল বৃদ্ধি।
১২. সেন্ট্রাল এয়ারকন্ডিশনার ব্যবহারের ক্ষেত্রে স্বাভাবিক মাত্রায় চালানো এবং বিশুদ্ধ বাতাস চলাচল বৃদ্ধি করা। সব এয়ার সিস্টেমের ফিরতি বাতাস বন্ধ রাখতে হবে।
১৩. জনসাধারণের ব্যবহারের স্থানগুলো জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।
১৪. টয়লেটগুলোতে তরল সাবান থাকতে হবে। সম্ভব হলে হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং জীবাণুনাশক যন্ত্র স্থাপন করা যেতে পারে।
১৫. যাত্রীদের অপেক্ষা করার জন্য ট্রেন কম্পার্টমেন্ট ও অন্যান্য এলাকা যথাযথভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।
১৬. প্রতিটি ট্রেন যাত্রা শুরুর আগে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। সিট কভারগুলোকে প্রতিনিয়ত ধোয়া, পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত করতে হবে।
১৭. প্রতিটি ট্রেনে হাতে-ধরা থার্মোমিটার থাকতে হবে। যথাযথ স্থানে একটি জরুরি এলাকা স্থাপন করতে হবে। যেখানে উপসর্গ আছে এমন যাত্রীদের অস্থায়ী কোয়ারেন্টাইনে রাখা যাবে।
১৮. যাত্রীদের অনলাইনে টিকিট ক্রয় করার জন্য পরামর্শ দিতে হবে।
১৯. সারিবদ্ধভাবে ওঠানামার সময়ে যাত্রীদের পরস্পর থেকে এক মিটারেরও বেশি দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে।

মাধবপুরে গাছের সাথে বেধে চোর কে গনপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

মাধবপুরে গাছের সাথে বেধে চোর কে গনপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ





লিটন পাঠান,হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুরে চুরি করতে গিয়ে জনতার হাতে আটক যুবক সোহেল মিয়া কে গাছের সাথে বেধে নির্যাতনের পর পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে, (২-জুন) ভোর রাতে মাধবপুর উপজেলার শন্তোষপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে। ওই গ্রামের মৃত কনু মিয়ার ঘরে ৩/ ৪জন চোর ঢুকে এসময় এক নারী আচ করতে পেরে চিৎকার করলে গ্রামবাসী ধাওয়া করে সোহেল (২২) কে আটকে ফেলে ।

পরে একটি গাছের সাথে বেধে গনপিটুনী দেয়া হয় খবর পেয়ে মাধবপুর থানার উপ পরির্দশক ওয়াহেদ গাজী পুলিশ সহ ঘটনা স্থলে পৌছলে গ্রামবাসী তাকে পুলিশে সোপর্দ করে। মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন সত্যতা নিশ্চত করে বলেন ধৃত সোহেল উপজেলার চারা বাংগা গ্রামের হুসন আলীর ছেলে।

সে পেশাদার চোর তার বিরুব্ধে থানায় মামলা রয়েছে,গন পিটুনী আহত সোহেল কে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয় দুপুরে তাকে কোর্টে প্রেরন করা হয়েছে।

এক টাকায় শিক্ষা সংগঠন থেকে লাইভ এ আসছেন করোনার হটস্পট নিয়ে কথা বলতে

এক টাকায় শিক্ষা সংগঠন থেকে  লাইভ এ আসছেন করোনার হটস্পট নিয়ে কথা বলতে




রিয়াজুল করিম রিজভী প্রতিনিধি চট্টগ্রামঃ-

আজ ঠিক রাত ৯ টায় হাটহাজারী দর্পন এর স্বত্বাধিকারী এবং সমকাল পত্রিকার হাটহাজারী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আলী আসবেন শিক্ষা নিয়ে কাজ করা দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সংগঠন "এক টাকায় শিক্ষা"-র ফেসবুক পেইজের লাইভে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করবেন এক টাকায় শিক্ষার প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি রিজুয়ান মজকুরি।

কোভিড-১৯ এর এই সময়ে গত তিনমাস ধরে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সংবাদ প্রদানের মাধ্যমে মোহাম্মদ আলী সচেতন করেছেন অসংখ্য মানুষকে। হয়তো নিজের অজান্তে বাঁচিয়ে দিয়েছেন অনেককে। দেশকে বাঁচাতে গিয়ে বর্তমানে তিনিও করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাসায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে, ভেঙে পরেননি। দৃঢ় আত্মবিশ্বাস নিয়ে টিকে আছেন তিনি।ওনার মনোবল এবং বিশ্বাস এর সাথে গত তিনমাসের করোনা ভাইরাস নিয়ে অভিজ্ঞতা সবার সাথে শেয়ার করার জন্য ফেসবুক লাইভে আসছেন তিনি।

অন্যদিকে এক টাকায় শিক্ষার প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি রিজুয়ান মজকুরি ইতিমধ্যেই বহু মানবিক কাজ করে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। মাত্র এক টাকা দিয়ে তিনি শিক্ষার আলোর যে মশাল প্রজ্জ্বলন করেছেন বোঝা যায় তা থামার নয়। আজকের ফেসবুক লাইভে অনুষ্ঠানে তিনি সবাইকে সাংবাদিক মোহাম্মদ আলীর কাছে কোনো প্রশ্ন থাকলে তা জিজ্ঞেস করার এবং লাইভ উপভোগ করার আমন্ত্রণ জানান।

বিদ্যুতের পুন:সংযোগ স্থাপনের জের ধরে অভয়নগরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত-১৫

বিদ্যুতের পুন:সংযোগ স্থাপনের জের ধরে অভয়নগরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত-১৫



মোঃ দেলোয়ার হোসেন , অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : 

অভয়নগর উপজেলার শমসপুর গ্রামে ঘুর্ণিঝড় আম্পানের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্থ বিদ্যুতের সংযোগ পুনরায় স্থাপনের জের ধরে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে ১৫জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় ৫জনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং ১০জনকে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার রাতে উপজেলার পায়রা ইউনিয়নের শমসপুর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন উপজেলার শমসপুর গ্রামের শাহজাহান বিশ্বাসের ছেলে আসাদ বিশ্বাস (৪০) জানান, ঘুর্ণিঝড় আম্পানে বিদ্যুতের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর পুনরায় তা সংযোগ স্থাপন নিয়ে প্রতিবেশী রিয়াজ উদ্দিনের পরিবারের সদস্যদের সাথে দ্ব›দ্ব চলে আসছিল। তারই জের ধরে সোমবার বিকালে আসাদ বিশ্বাসের বড়ভাই আজাদ বিশ্বাস পায়রা মোড়ে গেলে আজাদ বিশ্বাস ও রিয়াজ উদ্দিনের মধ্যে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে রিয়াজ উদ্দিন আজাদ বিশ্বাসকে মারপিট করে। এ ঘটনায় আজাদ বিশ্বাস বাদী হয়ে অভয়নগর থানায় অভিযোগ করেন বলে আসাদ বিশ্বাস জানান। ওই রাতে আজাদ বিশ্বাসের ছেলে বাদশা বিশ্বাস বাড়ি ফেরার পথে বাদশার পথ গতিরোধ করে বাদশাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে একই গ্রামের ইফাজ উদ্দিন ও রিয়াজ উদ্দিনের পরিবারের সদস্যরা। এসময় বাদশা বিশ্বাসকে উদ্ধার করতে আসাদ বিশ্বাস, তার স্ত্রী সুমী বেগম ঘটনাস্থলে গেলে রিয়াজ উদ্দিনের পরিবারের সদস্যরা তাদেরকেও কুপিয়ে জখম করে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন উপজেলার পায়রা ইউনিয়নের শমসপুর গ্রামের ওয়াজেদ আলী গাজীর ছেলে ইফাজ উদ্দিন (৩৮) জানান, সে ও তার বড়ভাই রিয়াজ উদ্দিন রাতের খাবার খাওয়ার সময় আজাদ বিশ্বাসের ছেলে বাদশা বিশ্বাস, রাজু বিশ্বাসসহ ৫-৭জন ধারালো অস্ত্র নিয়ে ইফাজ উদ্দিন ও রিয়াজ উদ্দিনকে কুপিয়ে জখম করে। এসময় ইফাজ উদ্দিন, তার স্ত্রী তালেহা বেগম ও রিয়াজ উদ্দিনের চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে এসে হামলাকারী বাদশা বিশ্বাস, রাজু বিশ্বাসসহ ৫-৭ জনকে পিটিয়ে জখম করে। এঘটনা ছড়িয়ে পড়লে দু’গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষে আহত হন উভয় গ্রুপের ১৫জন। আহতদের অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আহতদের মধ্যে ৫জনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদেরকে খুমেক হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে অভয়নগর থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম জানান, থানা পুলিশের তৎপরতায় ঘটনাস্থলের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। মামলা হলে, আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 


আল্লামা হাশেমীর মৃত্যুতে রেজাউল করিম চৌধুরীর শোক প্রকাশ

আল্লামা হাশেমীর মৃত্যুতে রেজাউল করিম চৌধুরীর শোক প্রকাশ




নিজস্ব সংবাদদাতা 

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত বাংলাদেশ’র চেয়ারম্যান, ইমামে আহলে সুন্নাত আল্লামা কাযী মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম হাশেমীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও শ্রদ্ধা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম.রেজাউল করিম চৌধুরী। 

শোকবার্তায় তিনি বলেন, আলেমকূলের এই শিরোমণি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সর্বজন শ্রদ্ধেয় ইমাম হিসেবেও উপমহাদেশে অতুলনীয় স্থান গড়ে নেন।নিজেই হয়ে ওঠেন অনুপম অনুসরণীয় আদর্শ।

এই মহান ব্যক্তি পীরে কামেল, আল্লামা মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম হাশেমী ছাহেব কেবলা (মুদ্দাজিল্লুহুল আলী) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। আমি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।’  মহান আল্লাহ পাক হুজুর’কে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন। আমিন।

নাটোরের লালপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত ব্যাক্তির মৃত্যু

নাটোরের লালপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত ব্যাক্তির মৃত্যু




রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের লালপুর উপজেলার আজিমনগর রেলওয়ে স্টেশনে ঢাকা থেকে পঞ্চঁগরগামী পঞ্চঁগর ৭৯৩ আপ ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত এক ব্যাক্তির মৃৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (০২ জুন) রাত সাড়ে ৩দিকে উপজেলার আজিমনগর রেলওয়ে স্টেশনের দক্ষিন দিকের পৌর গোরস্থান এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা থেকে পঞ্চগরগামী ৭৯৩ আপ ট্রেনে অজ্ঞাত এক ব্যাক্তির কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃৃত্যু হয়। নিহত ব্যাক্তির লাশ ট্রেনে কেটে ছিন্ন বিচ্ছন্ন হয়ে যায়। পরে সকালে স্থানীয়রা বিষটি আজিমনগর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টর কে জানালে। স্টেশন মাস্টার বিষয়টি জিআরপি পুলিশ কে খবরদিলে সকাল ১১টার দিকে জিআরপি পুুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন এবং জিআরপি থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

জিআরপি থানার এসআই আমিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
বুলবুল আহাম্মেদ

নাগরপুরে এসএসসিতে সাফল্যের চমক দেখালেন শতবর্ষ প্রতিষ্ঠান সরকারি যদুনাথ মডেল স্কুল এন্ড কলেজ

নাগরপুরে এসএসসিতে সাফল্যের চমক দেখালেন শতবর্ষ প্রতিষ্ঠান  সরকারি যদুনাথ মডেল স্কুল এন্ড কলেজ



 
ডা.এম.এ.মান্নান,টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ঐতিহ্যবাহী ও শতবর্ষ প্রতিষ্ঠান সরকারি যদুনাথ মডেল স্কুল এন্ড কলেজ তার ঐতিহ্য ধরে রেখেছে।এবারের ২০২০ সালের  এসএসসি ফলাফল তার প্রমান। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা,সাহিত্য ও সাংস্কৃতিকেও বিশেষ অবদান রাখছে এই ঐতিহ্যবাহী  বিদ্যালয়টি।খেলাধুলায় নাগরপুর উপজেলা জাতীয় ক্রিড়া প্রতিযোগিতায় বহুবার সেরা ও  চ্যাম্পিয়ন হয়ে জেলা ও বিভাগ পর্যায়ে জাতীয়ভাবে অংশগ্রহন করে জাতীয় ক্রিড়া পুরস্কার ছিনিয়ে এনেছে।এই বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা জাতীয় ও আন্তজার্তিক পর্যায়ে সামাজিক,রাজনৈতিক ও রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপৃর্ণ দায়িত্ব পালন করে মেধায় স্বাক্ষর রেখেছে এবং অব্যাহত আছে। ২০২০ সালে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে ২২৫ জন জেনারেল ও ভোকেশনাল ১৩৮ জন শিক্ষার্থী মোট  ৩৬৩ জন ছাত্র-ছাত্রী পরিক্ষায় অংশগ্রহন করেছেন। গত ৩১ মে ২০২০ খ্রি. জাতীয়ভাবে ফলাফল ঘোষনা করেছেন শিক্ষা মন্ত্রালয়। ৩৬৩ জনের মধ্যে ৪৮ জনের রেজাল্ট খারাপ হয়েছে। মোট ৩১(১৭+১৪) জন A+ পেয়ে নাগরপুর উপজেলার মধ্যে সেরা হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি এবং জেলা পর্যায়েও ভাল ফলাফলের দিক  থেকে প্রতিষ্ঠানটি শীর্ষের তালিকায় স্হান পেয়েছে।নাগরপুরের মাটি ও মানুষের কাছে প্রিয় প্রতিষ্ঠানটি হওয়ার শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী,অভিবাবক, সাবেক শিক্ষার্থী ও জনগনের মাঝে ব্যাপক আনন্দ ও উল্লাস লক্ষ্যে করা যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নিয়মিত পাঠদান ও প্রচুর পরিশ্রম, মেধা ও মননশীলতার নিখুঁত প্রয়োগ সহ শিক্ষার্থী,অভিভাবকদের সাথে নিবিড় যোগাযোগ ও সম্পর্কের কারণেই প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও সেরা হয়ে উঠছে এ প্রিয় শতবর্ষ প্রতিষ্ঠানটি।প্রতিটি শিক্ষার্থীর প্রতি নিরলস শ্রম রয়েছে বিদ্যালয়টির  শিক্ষক/শিক্ষিকাদের। দুর্বল ও অমনোযোগী ছাত্রছাত্রীর প্রতি রয়েছে কঠোরতা ও অতিরিক্ত পাঠদান আর মেধাবী ছাত্রছাত্রীর প্রতি রয়েছে আলাদা দৃষ্টি ও খেয়াল এবং বিভিন্ন ক্লাশ পরিক্ষার সেরাদের সেরা ছাত্র ঘোষনা করে আয়োজন করে দেওয়া হয় পুরস্কার ও মেধা বৃত্তি। সেরা শিক্ষক হিসাবে আইসিটি প্রশিক্ষণের  প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ মো.শফিকুল ইসলাম নিউজল্যান্ড-২০১৯  ও আইসিটি শিক্ষক মো.সোহেল রানা থাইল্যান্ড-২০১৯ সরকারীভাবে আইসিটি শিক্ষা ও প্রশাসনিক পরিচালনা বিষয়ক ট্রেনিং নিয়ে এই শতবর্ষ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যাপক অবদান রাখছে।  প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য সকল শিক্ষকদের  উচ্চতর একাডেমিক শিক্ষা রয়েছে ও বিষয়ভিত্তিক রয়েছে আলাদা ট্রেনিং।
নিয়মিত দেখাশোনার জন্য রয়েছে আলাদা জনবল। এখানে কম্পিউটার ল্যাব, ডিজিটাল ক্লাশ রুম, মাল্টিমিডিয়া ক্লাশ সহ আধুনিক বিজ্ঞানাগার রয়েছে।রয়েছে বিশাল আকারে ছাত্র হোস্টেল, সাথে রয়েছে জামে মসজিদ ও বিশাল বড় মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে পাঁকা ঘাটলা বাঁধা পুকুর, রয়েছে বিশাল বড় খেলার মাঠ। সরকারি যদুনাথ মডেল স্কুল এন্ড কলেজ এর সুযোগ্য ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ জ্বনাব মো.শফিকুল ইসলাম স্যারের কাছে অভিমত জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শুধু এসএসসি পরীক্ষার ভাল ফলাফল ছাড়াও সরকারি-বেসরকারি অন্যান্য পরীক্ষায় ও জেলার শীর্ষ স্থান দখল করে থাকে প্রতিবছর। এটা শুধুমাত্র শিক্ষকদের কঠোর পরিশ্রম, অভিভাবকের আন্তরিকতা, সর্বোপরি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও  আমার প্রানপ্রিয় শিক্ষার্থীদের প্রচেষ্টার ফল। বিদ্যালয়ের আজকের এ রেজাল্ট অবস্থানে উপজেলা পেরিয়ে জেলায় ভাল ফলাফল প্রতিষ্ঠানের তালিকায় স্থান দখল করেছে।তিনি এ ফলাফলের জন্য মহান আল্লাহর দরবারে শুকুরিয়া,আলহামদুলিল্লাহ ও পাশাপাশি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা পরিষদ, শিক্ষক-শিক্ষিকা,কর্মকর্তা, কর্মচারী ও অভিভাবক  মন্ডলীদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন।