শৈলকুপায় আ'লীগের কর্মীকে কুপিয়ে জখম,প্রাইভেটকার ভাংচুর

শৈলকুপায় আ'লীগের কর্মীকে কুপিয়ে জখম,প্রাইভেটকার ভাংচুর


সম্রাট হোসেন শৈলকুপা (ঝিনাইদহ) উপজেলা প্রতিনিধিঃ
ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আওয়ামীলীগের অভ্যন্তরীন বিরোধে এক কর্মী কে কুপিয়ে যখম করা হয়েছে। 
এদিকে থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আরিফ রেজা মন্নুর প্রাইভেট কার ভাংচুর করা হয়েছে। 

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শহরে দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে ।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, আজ শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে শৈলকুপা মহিলা কলেজ রোড দিয়ে বাড়ি ফিরছিল ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলামের বড় ভাই তোফাজ্জেল হোসেন । এসময় অতর্কিতে হামলার শিকার হন তোফাজ্জেল হোসেন। তাকে কুপিয়ে যখম করা হয়। আহত অবস্থায় তাকে শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার পরপরই শৈলকুপা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা আরিফ রেজা মন্নুর প্রাইভেট ( ঢাকা মেট্রো গ-৩৫-২৭১৯) কারে হামলার ঘটনা ঘটে। ৯নং মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদে তার গাড়িটি ছিল। তবে তিনি পরিষদে ছিলেন না, এসময় হামলা হয় । একটি চায়ের দোকানও ভাংচুর করা হয়।

শৈলকুপা উপজেলা আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীন বিরোধে এই হামলা ওপাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে বলে কর্মীরা জানিয়েছে।

প্রসঙ্গত, শৈলকুপা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান শিকদার মোশাররফ হোসেন সোনা ও দলটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আরিফ রেজা মন্নুর মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। উপজেলা নির্বাচনের পর থেকেই আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এই বিরোধ।

আওয়ামীলীগ নেতা মোস্তফা আরিফ রেজা মন্নু জানিয়েছেন, তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালানো হয়েছে, না পেয়ে গাড়িতে হামলা করে। এছাড়া কে বা কারা তোফাজ্জেল হোসেনের উপর হামলা চালিয়েছে তা তাদের জানা নেই।

এদিকে শিকদার মোশারফ হোসেনের সমর্থরা দাবি  করছে পরিকল্পিতভাবে তাদের কর্মী তোফাজ্জেল হোসেন কে কুপিয়ে আহত  করেছে মোস্তফা আরিফ রেজার কর্মী-সমর্থকরা।

একের পর এক ক্ষমতাশীন আওয়ামীলীগের এমন অভ্যন্তরীন বিরোধ মেটাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে পুলিশ কে । আজ শুক্রবারের ঘটনায় শহরে দাঙ্গা পুলিশ মোতােয়ন করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে উদ্বেগ বিরাজ করেছ।

সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তান্ডবে কেশবপুরে আনুমানিক ২৮ কোটি টাকার ক্ষতি

সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তান্ডবে কেশবপুরে আনুমানিক ২৮ কোটি টাকার ক্ষতি



মোরশেদ আলম 
কেশবপুর যশোর প্রতিনিধি। 

যশোরের কেশবপুরে ঘুর্নিঝড় আম্ফানের তান্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। ২০ মে সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তান্ডবে এ উপজেলায় ২৮ কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে বলে জানা গেছে । ভেঙ্গে পড়েছে ছোট-বড় বিভিন্ন প্রকার লক্ষ লক্ষ গাছ উপড়ে গেছে অসংখ্য শতবর্ষি বৃক্ষ।
২ হাজার ২শ’ পরিবারের ঘরবাড়ি উড়ে গেছে ঝড়ের আগ্রাসী তাণ্ডবে। শবজি, পাট, পান আমসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।খত বিখ্যাত হয়েছে বিদ্যুতের তার ভেঙেছে বৈদ্যুতিক পোল নতুন সংযোগ দেওয়া পিলারগুলো পানির ভিতরে পড়ে গেছে এ যেন ঝড়ের ভয়ানক ক্ষুধা। সপ্তাহের বেশি দিন ধরে বিদ্যুতবিহীন হয়ে আছে উপজেলার যোগাযোগ।
উপজেলা কৃষি অফিসার মহাদেব চন্দ্র সানা দৈনিক খবর প্রবাহকে বলেন শবজি, পাট, পান ও আমসহ বিভিন্ন কৃষিজাত ফসলের ১৩ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। আম ও পানের সব চেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে।
কেশবপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রিজিবুল ইসলাম বলেন, ঘুর্নিঝড় আম্ফানের আঘাতে উপজেলার মোবাইল নেটওয়ার্ক,বিদ্যুত,ঘর বাড়ি, কৃষিজাত ফসল সহ বিভিন্ন সেক্টরে প্রায় ২৮ কোটি টাকার অর্থনৈতিক ক্ষতির সাধিত হয়েছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে।
এই ক্ষতি সামাল দিতে উপজেলা প্রশাসন নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন।

কুয়েতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ১০৭২ জন আজ মৃত্যু ৯ জন

কুয়েতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ১০৭২ জন আজ মৃত্যু ৯ জন



দাইয়ানুর রহমান মিষ্টারনুর কুয়েত প্রতিনিধিঃ

কুয়েতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, আজ করোনা ভাইরাসে আরো ১০৭২ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন বলে শনাক্ত করা হয়েছে।
এ পর্যন্ত কুয়েতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫১৮৪ জনে, চিকিৎসাধীন  ১৫৭১৭ জন, সুস্থতা লাভ করেছেন ৯২৭৩ জন ও বর্তমানে সংকটপূর্ণ অবস্থা ১৯১ জন।

আজ নতুন করে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।
এনিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৯৪ জনের। 

গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত বিভিন্ন দেশের নাগরিক।
ভারতীয় নাগরিক -২৯৩ জন
স্থানীয় নাগরিক- ২৩৪ জন
মিশরীয় নাগরিক - ১৪২ জন
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশী আজ নতুন করে আরো ১৪৭ জন সহ শনাক্ত মোট ২৭৪৮ জন।
বাকিরা অন্যান্য দেশের।

৫ প্রদেশে আক্রান্তদের সংখ্যা।
ফারওয়ানিয়া - ৩৫৩ জন
আহমদি - ২৯৩ জন
হাওয়াল্লী - ১১১ জন
জাহরা - ২২৩ জন
রাজধানী শহর - ৯২ জন

আবাসিক এলাকায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত।
জিলিব আল-সুয়েখ -৯৩ জন
আব্দালি - ৭৬ জন
ফারওয়ানিয়া - ৮৯ জন
খাইতান- ৭৫ জন
মাংগাফ- ৭৪ জন

এছাড়াও দেশটির তিনটি জায়গায় যথাক্রমে, জওয়ান রেসর্ট,খাইরান রেসর্ট ও আল-কুত বিচ্ হোটেলসহ আরো বেশ কয়েকটি ক্যাম্পে ২৩ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

বর্তমানে কুয়েতে ''জরুরী অবস্থা'' চলছে।
সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করতে নির্দেশ এবং খুব বেশি প্রয়োজন ব্যতীত ঘরের বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকতে নিষেধ করেছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

কুয়েতের সর্বত্রে (৩১ মে থেকে তিন সপ্তাহ) সন্ধ্যা ৬ টা থেকে সকাল ৬ টা পর্যন্ত ( ১২ ঘণ্টার কারফিউ)
উল্লেখ্য,  মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে কুয়েতের সর্বত্রে চলছে লকডাউন ও কারফিউ।
প্রায় তিন মাস পর আগামী ৩১ মে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশটি স্বাভাবিক কাজকর্মে ফেরার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
অন্যদিকে মাহবুলা,জিলিব,ফারওয়ানিয়া, খাইতান ও হাওয়াল্লী এলাকায় টোটাল কারফিউ জারি করা হয়েছে।
তবে টোটাল কারফিউ জারিকৃত এলাকার কিছু সংখ্যক স্ট্রিট ও ব্লককে টোটাল কারফিউ এর আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। 

টোটাল কারফিউ এর আওতার বাইরে নিম্নের ব্লক ও স্ট্রিট গুলো।
ফারওয়ানিয়া, স্ট্রিট নং- ৬০.১২০.৫২০ ও ১২৯।
খাইতান, ব্লক নং- ৪.৬.৭.৮ ও ৯

সূত্র, আরব টাইমস

করোনার মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাত,লন্ডভন্ড চৌগাছা

করোনার মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাত,লন্ডভন্ড চৌগাছা



শিমুল রহমান, চৌগাছা (যশোর)
 
করোনা ভাইরাসের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে যশোরের চৌগাছা উপজেলা লন্ডভন্ড হয়ে গেছে।ক্ষেতের ফসল,ঘর-বাড়ি,দোকান,অফিস,স্কুল-কলেজ,গাছপালা ঝড়ে নষ্ঠ হয়ে গেছে,এমনকি সবই এখন অচেনা হয়েছে গেছে।এছাড়া ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে গাছপালা ভেঙ্গে বিদ্যুৎ এর খুটির উপর পড়ে তার ছিড়ে যাওয়ায় বেশ কয়েকদিন ধরে উপজেলার বিদ্যুৎ সরবারহ বন্ধ হয়ে গেছে।একই সাথে বন্ধ হয়ে রয়েছে মোবাইল নেটওয়ার্ক সেবা।এরই মধ্যে অনেক অনেক গ্রামে বিদ্যুৎ সেবা চালু করা হলেও এখনও ডিস লাইন ঠিক করা হয়নি।বিদ্যুৎ সরবারহ ঠিক হয়ে গেলেই ডিস লাইন প্রদান করা হবে বলে জানান ডিস লাইন কতৃপক্ষ।

গত বুধবার রাত্রে ঘূর্ণিঝড় আম্পান চৌগাছা উপজেলায় কম বেশি ১১টি ইউনিয়ন ১টি পৌরসভায় ব্যাপক আঘাত আনে,ফলে উপজেলার কয়েকশত বিঘা কলার বাগান,আমের বাগান,লিচু বাগানের ব্যাপক ক্ষতি হয়।একই সাথে চলতি মৌসুমের পটল,বাদাম,ঝাল,তিল,ড্রাগণ,শসা বৃষ্টির পানিতে ডুবে যায়।একই সাথে ডুবে যায় পুকুর ও মাছের ঘের।ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে উপজেলার হাজার হাজার মানুষ।

কথা হয় চৌগাছা ইউনিয়নের মনমতপুর গ্রামের কলা চাষি আব্দুস সালামের সাথে।তিনি বলেন ঝড়ে আমার আড়াই বিঘা কাটা কলা গাছ একেবারে শেষ হয়ে গেছে।ক্ষতি গ্রস্থ সব গুলো গাছের কলা কাটার মত হয়ে গিয়েছিল,বেশ কয়েক খানা কলা ইতি মধ্যে বিক্রয়ও করেছি।ঝড়ে আমার প্রায় তিন লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।হাকিমপুর গ্রামের আম চাষি আতিয়ার রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে এই বছর আমার দুই বিঘা আমের বাগান একে বারে শেষে হয়ে গেছে,এখন দুই বিঘা বাগান কুড়ালেও এক মণ আম পাওয়া যাবেনা


ধুলিয়ানী ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামের মাস্টার আব্দুল আলীম বলেন,উপজেলার সব থেকে বেশি পানের বরজ আমাদের ইউনিয়নের।অসময়ের ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পানের বরজ সব নষ্ঠ হয়ে গেছে।তিনি আরো বলেন প্রতি বিঘা পানের বরজে কৃষকের লক্ষ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে,যাহা সামলাতে কৃষকের কয়েক বছর সময় লাকবে বলে মনে করছেন উপজেলার পান চাষীরা। উপজেলার সদর ইউনিয়নের কয়ারপাড়া গ্রামের ৭৫ বছর বয়সের বৃদ্ধ আতিয়ার বিশ্বাস বলেন,আমার বয়সে এমন ঝড় আমি আগে কোন দিন দেখিনি।

এ ছাড়া উপজেলার বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে,সব থেকে বেশি ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে উপজেলার চাঁদপাড়া জিসিবি আদর্শ কলেজ।ঝড়ে প্রতিষ্ঠানটি একে বারে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে।ঘূর্ণিঝড়ে উপজেলার কম বেশি বেশ কয়েটি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রসার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

পাবনায় অতিরিক্ত মদ্যপানে এক গৃহবধুর মৃত্যু

পাবনায় অতিরিক্ত মদ্যপানে এক গৃহবধুর মৃত্যু



রাজশাহী ব্যুরো
অতিরিক্ত মদ্যপানে পাবনার  ঈশ্বরদীতে এক গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত গৃহবধু সাহাপুর ইউনিয়নের নতুনহাট গোল চত্বর এলাকার জুয়েলের স্ত্রী তানিয়া (২২)। গতকাল  বৃহস্পতিবার রাতে তাকে দাফন করা হয়েছে। নিহতের বাবা মাসুম হোসেন ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন জানান, বৃহস্পতিবার (২৮ মে) দুপুরের দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মেয়ের মৃত্যু হয়।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে ঈদ উপলক্ষে  স্বামীর বাড়ির ছাদে স্বামীসহ পরিবারের দুই-তিন সদস্য মিলে মদ পান করেন। এরপর মধ্যরাতে গৃহবধূ তানিয়া অস্বস্তি বোধ করলে প্রথমে তাকে পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে  প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। বুধবার সকালের দিকে অবস্থার অবনতি হলে স্বজনরা ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ঈশ্বরদী হাসপাতালে অবস্থার উন্নতি না হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাজশাহীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল  বৃহস্পতিবার তাঁর মৃত্যু হয়।

এব্যাপারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর পাবনা ‘খ’ সার্কেলের সহকারি উপ-পরিদর্শক হাফিজুর রহমান জানান, মদ বিক্রির ব্যাপারে কঠোর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ঘটনাটি তাঁরা তদন্ত করে দেখছেন।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসমা খান বলেন, যে গৃহবধূ মারা গেছেন, তার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে জানা গেছে তিনি মদ্যপান করেছিলেন। নিয়মিত মদ্যপানের অভ্যাস না থাকলে অনেক সময় অতিরিক্ত মদপান করার ফলে শরীরে বিষক্রিয়া হয়। এতে মানুষ মারা যেতে পারে। অতীতেও এমন বহু ঘটনা দেখা গেছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বাহাউদ্দীন ফারুকী বলেন, এঘটনায় রাজশাহী থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ নৌকা ডুবিতে এ পর্যন্ত ১২ জনের লাশ উদ্ধার

সিরাজগঞ্জ নৌকা ডুবিতে এ পর্যন্ত ১২ জনের লাশ উদ্ধার


মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জের যমুনা নদীতে নৌকা ডুবির ঘটনায় আরো ২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে শিশুসহ নিহতের সংখ্যা হলো ১২ জন। তারা হলো, বেলকুচি উপজেলার পারসগুনা গ্রামের ধান কাট শ্রমিক ছানোয়ার (৩০) ও সাদিকুল (৩৮)।
শুক্রবার দুপুরের দিকে যমুনা নদীর তীরবর্তী খাস কাউলিয়া ও কাঁঠালবাড়ী নামকস্থান থেকে ভাসমান অবস্থায় তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। যমুনাপাড়ে স্বজনদের এখনও শোকের মাতম চলছে। এনায়েতপুর থানার ওসি মাসুদ পারভেজ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, এনায়েতপুর থানার নৌঘাট থেকে মঙ্গলবার সকাল পৌনে ১১ টার দিকে ধান কাটার অধিকাংশ শ্রমিকসহ কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে ইঞ্জিন চালিত একটি নৌকা সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার চরাঞ্চলে যাওয়ার পথে সাড়ে ১১ টার দিকে স্থলচর নামকস্থানে নৌকাটি ঝড়ো হাওয়ার কবলে পড়ে ডুবে যায়। এতে ৩৫ জন যাত্রী সাতঁরিয়ে প্রাণে রক্ষা পেয়েছে এবং আরো কমপক্ষে ৮/৯ জন যাত্রী এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

নাটোরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধার লাশ দাফন

নাটোরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধার লাশ দাফন

 
 
 

রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের বড়াইগ্রামে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বির  মুক্তিযোদ্ধার দাফন সম্পন্ন করা হয়। গতকাল বৃহষ্পতিবার ২ টার দিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা জালাল উদ্দিন (৭৫) নিজ বাসগৃহে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিলস্নাহে —–রাজিউন)। তিনি উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের বর্নি গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।
তার পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, তিনি কিডনি সংক্রমণ ও ডায়াবেটিস রোগে ভুগতেছিলেন। গত বৃহষ্পতিবার তার বাড়িতে হঠাৎ শারীরিক অবস্থা দ্রুত অবনতি ঘটে এবং মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, চার ছেলে, পাঁচ মেয়ে সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গত বৃহষ্পতিবার বিকেল পৌনে ছয়টার দিকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদান ও বর্নি কবর স্থানে মাঠে জানাজার নামাজ শেষে বর্নি সামাজিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়। তার জানাজার নামাজে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আনোয়ার পারভেজ সহ এলাকার মুক্তিযোদ্ধা ও ধর্ম পরায়ন মুসলমানগণ উপস্থিত ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে নাটোর-৪ আসনের (বড়াইগ্রাম- গুরম্নদাসপুর) সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো.আব্দুল কুদ্দুস এবং বনপাড়া পৌর মেয়র কে এম জাকির হোসেন শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

সুন্দরবনের করমজল প্রজনন কেন্দ্রে কুমির জুলিয়েট ৫২টি ডিম পেড়েছে

সুন্দরবনের করমজল প্রজনন কেন্দ্রে  কুমির জুলিয়েট ৫২টি ডিম পেড়েছে




মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা  
 সুন্দরবনের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রে কুমির জুলিয়েট ২৯ মে শুক্রবার ভোর ৬টায় ৫২টি ডিম পেড়েছে। ৫২টি ডিম থেকে ১৪টি ডিম জুলিয়েটথর নিজের বাসায় রাখা হয়েছে। বাকী ডিম নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় ইনকিউবেটরে রাখা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে ৮৫ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে ডিম থেকে কুমির ছানা ফুঁটবে।

সুন্দরবনের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজাদ কবির জানান শুক্রবার ভোর ৬টায় কুমির জুলিয়েট ৫২টি ডিম পাড়ে। এর মধ্যে থেকে ১৪টি ডিম কুমির জুলিয়েটথর নিজের বাসায় রাখা হয়েছে। বাকী ৩৮টি ডিম নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় ইনকিউবেটরে রাখা হয়েছে। বর্তমানে আলেকজান্ডার নামের একটি নতুন পুরুষ কুমির প্রজনন কেন্দ্রে আনা হয়েছে। কুমির গুলির মধ্যে সম্পর্ক ভালো লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আশা করছি ভালো ফল পাওয়া যাবে এবং ৮৫ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে ডিম থেকে কুমির ছানা ফুটবে। আজাদ কবির আরো জানান ২০০০ সাল থেকে সরকারি ভাবে একমাত্র কুমির প্রজনন কেন্দ্র করমজলে শুরু হয়। ২০০৫ সালে কুমির রোমিও এবং জুলিয়েটথর মিলনে ডিম পাড়া ও কুমির ছানা উৎপাদন শুরু হয়। কুমির পিলপিল আসে ২০১০ সালে। বর্তমানে করমজল কুমির প্রজনন কেন্দ্রে ১৯৫টি কুমির আছে। বিাভিন্ন সময়ে সুন্দরবনে ৯৭টি কুমির অবমুক্ত করা হয়েছে। কিছু কুমির বিভিন্ন পার্ক ও চিড়িয়া খানায় নেয়া হয়েছে।

মোংলার উলুবুনিয়া গ্রামে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে জিআর চাল বিতরণ

মোংলার উলুবুনিয়া গ্রামে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে  জিআর চাল বিতরণ



মোঃএরশাদ হোসেন রনি, মোংলা   
 মোংলার সোনাইলতলা ইউনিয়নের উলুবুনিয়া গ্রামে ২৯ মে শুক্রবার সকালে ঘূর্ণিঝড় আম্পান এ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার দপ্তরের মাধ্যমে জিআর চাল বিতরণ করা হয়।

শুক্রবার সকাল ১১টায় জিআর চাল বিতরণকালে তাৎক্ষণিক সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সোনাইলতলা ইউপি চেয়ারম্যান নারজিনা বেগম নাজিন। সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ নাহিদুজ্জামান নাহিদ। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ নাহিদুজ্জামান নাহিদ বলেন করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে এবং ঘূর্ণিঝড় আম্পান এ ক্ষতিগ্রস্থদের প্রয়োজন অনুযায়ি সরকার খাদ্য সহায়তা প্রদান করবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এবং খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক ও উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের সার্বক্ষণিক নজরদারির মাধ্যমে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দুস্থদের খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। চলমান করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট পরিস্থিতি এবং যেকোন দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকাররের খাদ্য সহায়তা কর্মসুচি চলমান থাকবে। এসময় বিভিন্ন ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। উলুবুনিয়া গ্রামে ঘূর্ণিঝড় আম্পান এ ক্ষতিগ্রস্থ ২৬৫ পরিবারের মাঝে প্রত্যেক পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল দেয়া হয়্ উল্ল্যেখ্য খাদ্য সহায়তা ব্যবস্থাপনা কাজে বাংলাদেশ নৌবাহিনী মোংলা নৌ কন্টিনজেন্ট সদস্যরা সার্বিক সহযোগিতা করেন।

দিল্লিতে সতর্কতা সংকেত জারি। ভারতে পঙ্গপালের আক্রমণ

দিল্লিতে সতর্কতা সংকেত জারি। ভারতে পঙ্গপালের আক্রমণ



রিয়াজুল করিম রিজভীঃ

উত্তর প্রদেশে এবং মধ্য প্রদেশের পর এবার রাজধানীতে দিল্লিতছ  আসঙ্কা পঙ্গপাল হানার সর্তকতা জারি। পঙ্গপাল তাড়াতে রাজস্থান এবং মধ্য প্রদেশে ব্যাবহার হচ্ছে ড্রোন।

করোনা মহামারী ভাইরাস রোধে লকডাউনের মধ্যে ভারত জুড়ে মধ্য প্রদেশে এবং উওর প্রদেশে এবং রাজস্থান হুরিয়ানায় ও পাঞ্জাবে পঙ্গপালের আক্রমণ দেখা দিয়েছে। রাজধানী দিল্লিতে জারি করেছে সতর্কতা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে শস্য সবজি বাগান ও ফুল গাছে কীটনাশক ছিটানোর জন্য। ঝাঁকে ঝাঁকে পঙ্গপাল এই রাজ্যের বহু গ্রাম শহরে ঢুকে পড়ছে। নষ্ট করছে মাইলের পর মাইল ফসলের ক্ষেত।

এতে দেশ জুড়ে দেখা দিয়েছে নতুন এক  উদ্ভেগ। মরুভূমির এইসব পঙ্গপালের হানায়‌ এর মধ্যে রাজস্থানের ২০ জেলায় ৯০ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।হুরিয়ানার সাত জেলায় চালু করা হয়েছে সবোর্চ্চ সতর্ক সংকেত। তিন দশকের মধ্যে পঙ্গপালের সবচেয়ে ভয়াবহ আক্রমণ রোধে নেওয়া হয়েছে সব ধরনের ব্যবস্থা। দেশেটি কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছেন তারা প্রতিনিয়ত পঙ্গপালের আক্রমণ রোধে ও এটি নিয়ন্ত্রণ করার  জন্য কাজ করে যাচ্ছেন এবং পাশাপাশি সেচ্চাসেবী সংগঠন গুলো কাজ করছে তাদের সাথে।

বিশেষ মেশিন এর সাহায্যে কীটনাশক ছিটিয়ে ও শব্দের মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা চলতেছে। পঙ্গপাল তাড়ানোর জন্য এইসব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।এই সব কাজ পর্যবেক্ষণ এর জন্য ১১টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।পঙ্গপাল নিধনে ব্যবহার করছে ড্রোন।

যেহেতু পঙ্গপাল দিনের বেলায় উড়ে আর রাতে বিশ্রাম নেয়।তাই তাদের বিশ্রাম নিতে দেওয়া যাবে না বলে জানিয়েছেন কৃর্তপক্ষ। নার্সারি গুলো রক্ষায় পলিথিন ব্যবহার এর পরামর্শ দিয়েছেন দিল্লির বন বিভাগ।
পঙ্গপাল এর দল যদি একটানা এক যায়গায় ৮ দিন অবস্থান করে তাহলে তারা সেই স্থানে বংশ বিস্তার শুরু করবে। এবং এই মৌসুমে ডিম পারলে তা ঝুঁকি পূর্ণ হবে সকালের জন্য। জোরালো শব্দে পঙ্গপাল ভয় পেয়ে উড়ে যায়।তাই সকল গ্রামে এটি দিয়ে কাজ করা হচ্ছে।

মিরসরাইয়ে নুরুল আমিন চেয়ারম্যানের পক্ষে যুবদল নেতা বাবলুর ত্রাণ বিতরণ

মিরসরাইয়ে নুরুল আমিন চেয়ারম্যানের পক্ষে যুবদল নেতা বাবলুর ত্রাণ বিতরণ



মিরসরাই প্রতিনিধি
মিরসরাই উপজেলার ইছাখালী ইউনিয়নের লুদ্দাখালী ও আমিন বাজার এলাকায় অসহায়, দুস্থ ও কর্মহীন মানুষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। শুক্রবার (২৯ মে) সকালে মিরসরাই উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১ আসনে বিএনপির মনোনিত প্রার্থী নুরুল আমিনের পক্ষে, যুবদল নেতা, চট্টগ্রামস্থ মিরসরাই জাতীয়তাবাদী ফোরামের অর্থ সম্পাদক গোলাম মাওলা বাবলুর সার্বিক তত্ত্বাবধানে এসব ত্রাণ বিতরণ করা হয়।

ত্রাণ বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন  ইছাখালী ইউনিয়ন যুবদলের সহ-সভাপতি এরাদুল হক,ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক আবু রোম্মান,উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল নোমান,ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ন-আহ্বায়ক নাজিম উদ্দিন,যুবদল নেতা জাহেদুল ইসলাম,মাঈনুল হাসান,৮ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি মামুনুল ইসলাম,কামরুল ইসলাম,হেলাল উদ্দিন,নাজমুল ইসলাম,মনিরুল ইসলাম,৭ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের যুগ্ন-সম্পাদক তারেক জিয়া,আরমান প্রমুখ।

যুবদল নেতা গোলাম মাওলা বাবলু বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে বিএনপি  সারাদেশে মহামারি করোনায় কর্মহীন,ঘরবন্দী, অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছে,তারই অংশ হিসেবে আমরা আমাদের নেতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আমিনের নির্দেশনায় শতাধিক মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছি।
যতদিন এই মহামারি থেকে দেশ ও দেশের মানুষ পরিত্রাণ না পাবে ততদিন আমাদের এ কার্য্যক্রম চলমান রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করছি।

সিংড়ায় প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে সহায়তা প্রদান ইউএনও

সিংড়ায় প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে সহায়তা প্রদান ইউএনও

 

রাজু আহমেদ, নাটোর: 
অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশের পর ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ সিংড়ার পিপুলশন বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক বিদ্যালয়ে নগদ অর্থ ও শিশুখাদ্য প্রদান করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন বানু। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মাসুম বিল্লাহর হাতে নগদ ৫০০০০ টাকা ও প্রায় ২৫০ প্যাকেট শিশুখাদ্য তুলে দেন তিনি।


এসময় উপস্থিত ছিলেন ডাহিয়া ইউপি চেয়ারম্যান এম আবুল কালাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আল আমিন সরকার প্রমুখ। 

উল্লেখ্য : সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত হয় পিপুলশন বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টি ২০১৪ সালে উপজেলার ডাহিয়া ইউনিয়নের পিপুলশন গ্রামে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। 

কুষ্টিয়ায় গড়াই নদীতে ১৪ঘস্টা পরে ভেসে উঠলো নি‌খোঁজ ব্যাংক কর্মকর্তা রাফসান এর লাশ

কুষ্টিয়ায় গড়াই নদীতে ১৪ঘস্টা পরে ভেসে উঠলো নি‌খোঁজ ব্যাংক কর্মকর্তা রাফসান এর লাশ



রাজশাহী ব্যুরো
কুষ্টিয়ায় বন্ধুদের সাথে গড়াই নদীতে গোসল করতে নেমে নি‌খোঁজ ব্যাংক কর্মকর্তা রাফসান(৩০) এর মৃত‌দেহ উদ্ধার ক‌রে‌ছে স্থানীয়রা। নি‌খোঁ‌জের ১৩ ঘন্টা পর শুক্রবার(২৯ মে) সকা‌ল সা‌ড়ে ৭টার দি‌কে ঘোড়ার ঘাট ‌ড্রে‌জিং প‌য়েন্টে তার মৃত‌দেহ ভে‌সে ও‌ঠে। রাফসান শহরের থানাপাড়া এলাকার মৃত রেজাউল হকের ছেলে। তিনি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ঈশ্বরদী শাখায় ক্যাশিয়ার ছিলেন।
বৃহস্পতিবার(২৮ মে) দুপুর দেড়টায় শহরের ঘোড়ার ঘাট সংলগ্ন গড়াই নদীতে পাঁচবন্ধু গোসল কর‌তে নে‌মে নি‌খোঁজ হয় রাফসান

প্রত্যেক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, রাফসান তার কুষ্টিয়ার পাঁচবন্ধু রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক হাসিবুর রশিদ তামিম,ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ, কুষ্টিয়া স্যামসাং শো-রুমের ম্যানেজার ফয়সাল ও আব্দুর রশিদকে নিয়ে বৃহস্প‌তিবার দুপ‌ু‌রে শহ‌রের ঘোড়ার ঘাট সংলগ্ন গড়াই নদীতে গোসলের উদ্দেশ্যে আসে।
বন্ধুরা একসাথে সবাই নদীতে গোসলের জন্য নামে। এদের মধ্যে তামিম ও রাফসান একটু গভীরে গেলে হঠাৎ করেই তারা দু’জনেই নদীতে তলিয়ে যায়। এ সময় অন্যান্য বন্ধুদের চিৎকারে স্থানীয় মাঝিরা তামিমকে টেনে তুললেও রাফসানকে খুঁজে পাইনি। পরবর্তী‌তে খুলনা থে‌কে ডুবু‌রি দল কু‌ষ্টিয়ায় এ‌সে রাত ৮টা পর্যন্ত উদ্ধার অ‌ভিযান চালায়। শুক্রবার সকা‌লে রাফসা‌নের মৃত‌দেহ‌টি নি‌খোঁজ হওয়ার স্থান থে‌কে কিছু দু‌রেই ডে‌জিং প‌য়ে‌ন্টে ভে‌সে ও‌ঠে। স্থানীয়দের সহ‌যো‌গিতায় রাফসা‌নের মৃত‌

দেহ‌টি পা‌নি  থেকে উপরে আনলে  আত্মীয় স্বজনদের আহাজারিতে প‌রি‌বেশ ভা‌রি হ‌য়ে ও‌ঠে।
বন্ধু হাসিবুর রশিদ তামিম জানান,রাফসান আর আমি একসাথেই ছিলাম। বাকিরা একটু কম পানিতে ছিল। হঠাৎ করে আমাদের পায়ের তলের বা‌লি সরে যায়। সাঁতার না জানায় আমি ও রাফসান তলিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করতে পারলেও রাফসানকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।
পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, ঈদের ছুটিতে রাফসান তার কর্মস্থল ঈশ্বরদী থেকে কুষ্টিয়া এসেছিলেন। চলতি মাসের ২ তারিখে তিনি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।
কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, নিখোঁজ ব্যক্তির লাশ সকা‌লে ভে‌সে উ‌ঠে‌ছিল। স্থানীয়‌দের সহ‌যো‌গিতায় তা‌কে উদ্ধার করা হয়।

নওগাঁর আত্রাইয়ে বৃষ্টির পানির নিচে কৃষকের পাঁকা ধান

নওগাঁর আত্রাইয়ে বৃষ্টির পানির নিচে কৃষকের পাঁকা ধান


 

মোঃফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর আত্রাই উপজেলায় এবার ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। দিগন্ত্ম জোড়া ফসলের মাঠে পাকা ধানের সোনালী শীষে দোল খা"চ্ছিল কৃষকের স্বপ্ন। কিন্তু কৃষকের সেই স্বপ্ন তলিয়ে গেছে বৃষ্টির পানিতে।
ঘূর্ণিঝড় আম্পান এর প্রভাবে এক সপ্তাহের টানা বৃষ্টিপাতের কারণে গোটা উপজেলার অধিকাংশ নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে যায়। খাল, বিল, ডোবা, জলাশয় পানিতে ভরে গেছে। ফলে উপজেলার কয়েকশ" একর জমির বোরো ধান বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। ধানের সঙ্গে তলিয়ে গেছে কৃষকের সারা বছরের স্বপ্ন। এতে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা।
আত্রাই উপজেলার জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। তার মাঝে ৬ হেক্টর জমিতে ধান অতিরিক্ত ভারী বর্ষণের কারণে পানির নিচে তলিয়ে গিয়েছে। তার পরেও ধানের বাম্পার ফলনে উৎপাদন লক্ষ্য মাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করেন উপজেলা কৃষি বিভাগ। তিনি বলেন, পানিতে তলিয়ে যাওয়া বোরো ধান কেটে বাড়ি আনতে কৃষকের কয়েক গুণ বেশি পরিশ্রম হবে। তারপরও সোনালী ফসল ঘরে তুলতে দুর্ভোগ পোহাতে হছে। অতিরিক্ত ভারী বর্ষণের কারণে ভেজা ধান ঘরে তোলা ও ধান মাড়াই করে শুকাতে গিয়ে বিপদে পড়তে হচ্ছে কৃষকদের। চোখের সামনেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে কষ্টে উৎপাদিত শত শত একর জমির ধান।
উপজেলার হাটকালুপাড়া  ইউনিয়ন ও কালিকাপুর  ইউনিয়নের কয়েক জন কৃষক জানান, জমিতে সম্পূর্ণ ধান পেকেছে। কিন্তু কয়েক দিন ধরে বৃষ্টি হওয়ায় জমির পাকা ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। ধান গাছ শীষের নীচের দিক থেকে পঁচে যাচ্ছে   বিপাকে পড়েছি আমরা।

বর্তমানে নওগাঁয় ধানের বাজার অব্যাহত থাকলে আগামীতে ধান চাষে আগ্রহ আরো বাড়বে

বর্তমানে নওগাঁয়  ধানের বাজার অব্যাহত থাকলে আগামীতে ধান চাষে আগ্রহ আরো বাড়বে



 মোঃ ফিরোজ হোসাইন
রাজশাহী ব্যুরো
 
নওগাঁয় চলতি মৌসুমে ইরি-বোরো ধান কাটা মাড়াইয়ের কাজ শেষের দিকে। কাটা মাড়াইয়ের শুরুতেই কৃষকরা তাদের কষ্টের ধান বাজারে ভালো দামে বিক্রি করতে পেরে খুশি। এদিকে ধান কাটা মাড়াই শুরু থেকেই এ প্রভাব পড়েছে জেলার চালের বাজারে। সকল ধরনের চাল আগের চাইতে কিছুটা কম দামে বিক্রি হচ্ছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, এবার জেলার ১১ উপজেলায় বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল এক লাখ ৮০ হাজার হেক্টর। আবহাওয়া অনুকূলে থাকা, স্বল্প মূল্য সার, তেল ও কৃষিতে সরকারের ভর্তুকি দেওয়ায় এখানকার চাষিরা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে দুই হাজার ৫০০ হেক্টর বেশি জমিতে ধানের আবাদ করেছেন। চলতি মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জমিতে রোগবালাই না দেখা দেওয়ায় বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।

নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সিরাজুল ইসলাম জানান, নওগাঁয় ৮০ ভাগ ধান কাটা মাড়াই শেষ হয়েছে। জেলায় চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৭ লাখ ৩২ হাজার মেট্রিক টন ধরা হলেও ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় ৭ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন চাল উৎপাদন হবে।

এরমধ্যে চিকন জাতের ধান ১ লাখ ৪৬ হাজার হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে। চিকন জাতের ধান থেকে ৬ লাখ মেট্রিক টন চাল উৎপাদন ধরা হয়েছে। আর মোটা জাতের ধান ৩৬ হাজার হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে। মোটা জাতের ধান থেকে দেড় লাখ মেট্রিক টনেরও বেশি চাল উৎপাদিত হবে।

জানা গেছে, গত বছরের তুলনায় ২০০থেকে ২৫০ টাকা বেশি দরে প্রতি মণ ধান কেনাবেচা হচ্ছে। মোটা জাতের ধান ৭০০ টাকা থেকে ৮৫০টাকা এবং চিকন জাতের ৯৫০ টাকা থেকে ১০৫০ টাকা পর্যন্ত প্রতি মণ কেনাবেচা হচ্ছে।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জিএম ফারুক হোসেন পাটোয়ারী জানান, জেলায় মিলারদের কাছ থেকে ৪৯ হাজার ২৬০ মেট্রিক টন চাল ও ৬ হাজার ৫১ মেট্রিক টন আতপ চাল কেনা হবে। অপরদিকে কৃষকদের কাছে থেকে লটারি ও কৃষি অ্যাপসের মাধ্যমে সরাসরি ২৩ হাজার ২৩২ মেট্রিক টন ধান কেনা করা হবে।

পৌর ক্ষুদ্র চাল ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক উত্তর কুমার জানান, নুতন ধান বাজারে আসায় চালের দাম কমেছে। বাজারে বর্তমানে তেমন কেনাবেচা নেই। জেলায় পুরোদমে ধান কাটা-মাড়াই শেষ হলে চালের বাজার আরো কিছুটা কমবে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

জেলা চাল কল মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ হোসেন জানান, কৃষকদের ধানের নায্য মূল্য নিশ্চিত করতে সরকার গত বছরের তুলনায় চলতি বছরে ধান ও চাল বেশি করে কিনছে। বর্তমান ধানের বাজার যদি অব্যাহত থাকে তাহলে আগামীতে কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহী হবেন।

নওগাঁর রাণীনগর প্রবাসীর স্ত্রীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে থানায় মামলা

নওগাঁর রাণীনগর প্রবাসীর স্ত্রীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে থানায় মামলা



মোঃ ফিরোজ হোসাইন 
রাজশাহী ব্যুরো

নওগাঁর রাণীনগরে প্রবাসীর বাড়ীতে ঢুকে স্ত্রীকে শ্লীলতাহানী, মারপিট, চুরি ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগে ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি ও ইউপি মেম্বারসহ ৮জনকে আসামী করে মামলা করা হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ৮নং মিরাট ইউপির আতাইকুলা (উত্তরপাড়া) গ্রামের জনৈক প্রবাসীর স্ত্রীর বাড়ীতে মঙ্গলবার রাতে আসামীরা অনাধিকার প্রবেশ করে। এসময় আসামীরা ওই প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা, মারপিট, শ্লীলতাহানী ও বাড়ীতে চুরি করে বলে মামলায় অভিযোগ আনা হয়েছে। প্রবাসীর স্ত্রী নিজেই বাদী হয়ে ৮নং মিরাট ইউপির ৮নং ওয়ার্ডের আ’লীগ সভাপতি ও ইউপি মেম্বার আসাদুজ্জামান তোতাসহ ৮জনকে আসামী করে মামলা করেছে (মামলা নং-৬ তাং ২৬/০৫/২০২০ইং ধারা-১৪৩/৪৪৮/৩২৩/৩২৬/৩০৭/৩৭৯/৩৫৪/৫০৬(৫), পেনাল কোড-১৮৬০)। এছাড়াও ঘটনার পর থেকে বিষয়টি কতিপয় ব্যক্তিদের নিয়ে স্থানীয় ভাবে নিরসনের চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

মামলার বাদী জনৈক প্রবাসীর স্ত্রী জানান, দীর্ঘদিন যাবত ওই ব্যক্তিরা তাকে নানা ভাবে শ্লীলতাহানীসহ হয়রানীর চেষ্টা করে আসছে। তারই প্রেক্ষিতে তারা এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। মামলা করার পর থেকে তারা আমাকে ভয়ভীতি দেখানো ও বিষয়টি মিটমাট করার চেষ্টা চালিয়ে আসছে। কিন্তু আমি সুষ্ঠু বিচার চাই।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার আসাদুজ্জামান তোতা বলেন, আমি এই বিষয়গুলোর কিছুই জানিনা। আমাকে হয়রানী ও সমাজে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্যই এই মিথ্যে অভিযোগের সঙ্গে জড়ানো হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরির্দশক (এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। মূল বিষয়টিকে উদঘাটন করতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে। তবে অভিযোগের কিছুটা সত্যতা পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহুরুল হক বলেন, অভিযোগটি মামলা আকারে রুজু করে একজন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি দ্রুত তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

২জুন হতে জমে উঠবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম বাজার

২জুন হতে জমে উঠবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম বাজার



মো:শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
আগামী ২ জুন বাংলাদেশের বৃহৎ আমবাজার কানসাট আমবাজার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে জমে উঠবে আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম বাজারগুলো। বাগানে আম পাড়া আর তা বাজারজাতকরণে বাজারগুলো শুরু হবে আম ব্যবসায়ীদের সরব উপস্থিতি। 





২ জুন কানসাট আমবাজারে আম বাজারজাত উদ্বোধন করবেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ সামিল উদ্দীন আহমেদ শিমুল। আম বাজারজাত ও পরিবহনে জেলাজুড়ে ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে ।



তবে করোনা পরিস্থিতিতে বাজারজাতকরণে প্রতিকুল প্রভাব পড়তে পারে সন্দেহে আম ব্যবসায়ীরা দৃশ্চিন্তায় রয়েছেন। আম বাজারজাতকরণে বাধার সম্মুখীন হলে বড় ধরণের ক্ষতির মুখে পড়তে পারে জেলার আমচাষি ও ব্যবসায়ীরা বলে আশঙ্কা করছেন অনেকে।



তবে আম বাজারজাতকরণে ব্যবসায়ীরা যাতে কোন সমস্যার সম্মুখীন না হয় সেবিষয়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন।জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, এবছর জেলায় প্রায় ৩৩ হাজার ৩৫ হেক্টর আমবাগানে আম ধরেছে।  প্রায় ২৫ লক্ষ ৩৯ হাজার ৬৩০ টি আমগাছে এবার আমচাষ হচ্ছে। 

জেলায় বর্তমানে গোপালভোগ, ক্ষিরসাপাতসহ বিভিন্ন গুটিজাতের আম পরিপক্কতা পেতে শুরু করেছে। সুত্র জানায়, আগামী জুনের ১ম সপ্তাহের পর গোপালভোগ ও ক্ষিরসাপাত আম পরিপূর্ণ পক্কতা পেলে আমপাড়া শুরু করবে আমচাষীরা।ইতিমধ্যে দেশের সর্ববৃহৎ আমবাজার কানসাট আমবাজার, জেলা সদরের সদরঘাট ও তহাবাজার, গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর বাজার ও ভোলাহাটের আমবাজারগুলো যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বলে জানা যায়।

জেলার প্রায় অধিকাংশ মানুষ আমকে ঘিরেই তাদের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। এবার নানা প্রতিকুলতার মাঝে ঘুর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে আমচাষীদের মুখের হাসি মলিন হয়ে গেছে। 

তরুন উদ্যোক্তা ও আম ব্যবসায়ী শহিদুল হক হায়দারি (শহিদ মিয়া) জানান, ঘুর্ণিঝড় আম্পান আমবাগানের অনেক ক্ষতি করলেও আমাদের জন্য শাপেবর হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ আম্পানের প্রভাবে সাতক্ষীরাসহ দেশের অন্যান্য জেলার আমবাগানের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। 

ফলে এবার আমের ভাল দাম পাবার আশা করছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, আমের ক্রেতা না পেলে আমচাষীদের লোকসান গুনতে হতে পারে।
বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ আমবাজার কানসাট আমবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ ওমর ফারুক টিপু জানান, এরই মধ্যে আমবাজারের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ২ জুন সংসদ সদস্য ডাঃ সামিল উদ্দীন আহমেদ শিমুল কানসাট আমবাজারের আম বিক্রয়ের উদ্বোধন করবেন।


তিনি জানান, গত বছর কানসাট বাজার হতে প্রায় ৯’শ কোটি টাকার আম বিক্রয় হয়েছে। ঘুর্ণিঝড় আম্পানের কারণে বাগানের প্রায় ২০% আম পড়ে যাবার কারণে এবং করোনার প্রভাবে এবার বিক্রি কম হতে পারে। তিনি বলেন, আম বাজারজাতকরণে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন যে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তা যদি বাস্তবায়িত হয় তাহলে ব্যবসায়ীরা লাভের মুখ দেখবে। অন্যথায় ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন আমচাষী ও আমব্যবসায়ীরা। এছাড়া পরিবহন আর বাজারজাত সঠিকভাবে করতে না পারলে অনেক ব্যবসায়ী পুঁজি হারানোর ভয়ে আছেন বলে জানান তিনি।

এবিষয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) একেএম তাজকির-উজ-জামান বলেন, জেলার আমকে ব্রান্ডিং করার জন্য জেলা প্রশাসন কাজ করছে। এরই মধ্যে সচিবালয়ে জেলার আমের বাজার তৈরী করার কাজ চলছে। তিনি জানান, বিভিন্ন জেলার আম ব্যবসায়ীরা জেলার আমবাজারে এসে যাতে নির্বিঘ্নে আম ক্রয় করতে পারে, সেব্যাপারে যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন। আম বাজারজাত ও পরিবহণে যাতে কোন সমস্যার সৃষ্টি না হয় সেবিষয়েও বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

নাটোরে ট্রাকের পিছনে ট্রাকের ধাক্কায় সহকারী চালক নিহত

নাটোরে ট্রাকের পিছনে ট্রাকের ধাক্কায় সহকারী চালক নিহত



রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরে গুরুদাসপুরে চলন্ত ট্রাকের পিছনে ট্রাকের ধাক্কায় রাব্বী হোসেন (২০) নামের এক চালকের সহকারী নিহত হয়েছে। বৃহস্পাতিবার রাত সারে ১১ ঘটিকার দিকে বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের কাছিকাটা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যাক্তি জেলার নলডাঙ্গা উপজেলার হারিদাকলসি গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে।
বনপাড়া ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন অফিসার আব্দুস সালাম জানান, নাটোর থেকে ঢাকাগামী চলন্ত একটি ট্রাকের (ঢাকা মেট্রো-ট ১১-৭১৬২) পিছনে আরেকটি ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ড ১১-৭৬৭৫) ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থরেই চালকের সহকারী নিহত হয়। লাশ উদ্বার করে বনপাড়া হাইওয়ে থানায় পাঠানো হয়েছে।
বনপাড়া হাউওয়ে থানার পুলিশ পরিদর্শক বলেন, ট্রাকের চালক পলাতক রয়েছে। দুটি ট্রাক আটক করা হয়েছে।

শিবগঞ্জে করোনা রোগী পরিত্যক্ত পোল্ট্রি ফার্মে

শিবগঞ্জে করোনা রোগী পরিত্যক্ত পোল্ট্রি ফার্মে



মো:শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
চাঁপাইনবাবগঞ্জে শিবগঞ্জ উপজেলায় শ্যামপুর ইউনিয়ে বাবুপুর বয়তাল পাড়ায় দুই জন করোনা রোগী পরিত্যক্ত পোল্টি ফার্মে অবস্থান করছে।

শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর চাঁদ শীকারির অলিউল আজিম ইমন সীরীপুরে থাকেন স্বামী ও স্ত্রী সেখান থেকে ২১ শে মে চাঁদ শীকারি আসেন ।কিন্তু তার বাবা মা তাদের বাড়িতে উঠতে দেয় নি।
পরে বিনোদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এনামুল হক এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আমাদের থাকার ব্যবস্থা করে নি।২৩ শে মে নমুনা সংগ্রহ করে আমাদের গতকাল আমাদের দুজনের করোনা পজিটিভ আসে।

করোনা আক্রান্ত অলিউল আজিম ইমন বলেন, আমার স্ত্রীকে নিয়ে আমি দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি কোথাও আমার জায়গা হয়নি যেমন প্রথমে আমার বাবা বেনজীর আলী বেনু আমাকে ও আমার স্ত্রীকে থাকার ব্যবস্থা করে দেন নি । ব্যবস্থা করে দেননি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও অবশেষে আমার শশুর গ্রামবাসীর সাথে যুদ্ধ করে পরিতক্ত পোল্টি ফার্মে আমাদের থাকার ব্যবস্থা করেন এখানে আমরা অসহায় ও মানবতার জীবন যাপন করছি।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা : জাহিদ নজরুল চৌধুরী বলেন, আমি বিষয়টি গতকাল শুনেছি এদের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাংলাদেশী খুন ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে ৫ দিনেও লাশ হস্তান্তর হয়নি

বাংলাদেশী খুন ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে ৫ দিনেও লাশ হস্তান্তর হয়নি



লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি, 

ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নির্মম ভাবে খুন হয়েছে বাংলাদেশী নাগরিক লোকমান হোসেন (৩২) ৫ দিন পরও কাগজ পত্রের জটিলতায় লাশ হস্তান্তর হয়নি, গরুচোর অপবাদ দিয়ে তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

গত ২৪ মে অবৈধ ভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতের মোহন এলাকায় তার ফুফুর বাড়ি যাচ্ছিলেন তিনি। ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের গোপালনগর পৌঁছাতেই এক দল ভারতীয় নাগরিক লোকমান হোসেন কে পথরোধ করে গরুচোর সন্দেহে এলোপাতাড়ি পিটাতে থাকে, এসময় সে চোর না বেড়াতে এসেছে এমন আকুতি বার বার জানালে ও পাষন্ডদের মন গলেনি।

এলোপাপাড়ি পিটুনিতে অবশেষে প্রাণটা চলে গেল। ভারতীয় কয়েক টি গনমাধ্যমে লোকমানের আকুতির ভিডিও প্রচার হয়েছে। তবে গরু চোর সন্দেহ গনপুটুনীতে তার মৃত্যুর খবর ত্রিপুরার গনমাধ্যম সম্প্রচার করে। মৃত ভেবে ভারতীয়রা লোকমান কে বাংলাদেশ সীমান্তের অদূরে একটি জঙ্গলে ফেলে রাখে।

খবর পেয়ে পশ্চিম ত্রিপুরা রাজ্যের সিধাই থানা পুলিশ মূমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে লোকমানের মৃত্যু হয়। ভারতীয় নাগরিকের হাতে বাংলাদেশী নিহত লোকমান মিয়া হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী ধর্মঘর ইউনিয়নের মালঞ্চপুর গ্রামের মৃত আব্দুল হাসিমের ছেলে। বুধবার বিকালে বিজিবি - বিএসএফ এর পতাকা বৈঠক হয় ১৯৯৪ /৪ এস পিলারে নিকট বাংলাদেশের মোহনপুুুর নামকস্থানে।

ভারতের পক্ষে বিএসএফ এর ১২০ ব্যাটালিয়নের মোহনপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার ইন্সপেক্টর শশি কান্ত ও বাংলাদেশের পক্ষে নেত্বত্ব দেন ৫৫ বিজিবির ধর্মঘর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার দেলোয়ার হোসেন, ভারতের পশ্চিম ত্রিপুরা রাজ্যের মোহনপুর সীমান্ত দিয়ে লাশ হস্তান্তর করার কথা ছিল। কিন্তুু ভারতীয় পুলিশ ময়না তদন্ত ,সুরতহাল রিপোর্ট আনুসাংগিক কাগজ পত্র ছাড়া লাশ হস্তাস্তর করতে চায়।

এতে বাংলাদেশের বিজিবি -পুলিশের প্রতিনিধিরা অস্বীকৃতি জানায় । নিহতের পরিরার সূত্র জানান লোকমান মিয়া বাড়ি পাশ দিয়ে অবৈধ পথে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতের মোহনপুরে তার ফুফুর বাড়ি যাইতে ছিলেন। পথে মধ্যে ভারতীয় নাগরিকদের রোষানলে পরে নির্মম ভাবে খুন হন। বাড়ি ফিরলো লাশ হয়ে। লোকমানের মৃত্যুর খবর জানার পর তার লাশ দেশে ফিরে আনার ব্যাপারে দু দেশের সীমান্ত রক্ষী দের মধ্যে কয়েক দফা আলোচনা শেষে সকল প্রকার আনুষ্টানিকতা শেষে বুধবার বিকালে মোহনপুর সীমান্ত দিয়ে লোকমান মিয়ার মরদেহ হস্তান্তর করার কথা ছিল। কিন্তুু ভারতের পশ্চিম ত্রিপুরার সিধাই থানা পুলিশ লোকমান মিয়ার মৃত্যু সংক্রান্ত কাগজ পত্র নিয়ে আসেনি।তারা হত্যাকান্ড কে অপমৃত্যু বলছে।

সিধাই থানা ওসি বিজয় সিংহ মাধবপুর থানার কাসিমনগর পুুুলিশ ফাঁঁড়ির ইন্সপেক্টর মোরশেদ আলম এবং এসআই কামরুল হাসান মৌখিক ভাবে অবগত করেন বাংলাদেশী নাগরিক লোকমান মিয়া কে সিধাই থানার গোপাল নগর গ্রামে আহত অবস্থায় পাওয়া যায় পরে তাকে আগরতলা জিবি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। এ ব্যাপারে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইন্সেফেক্টর মোরশেদ আলম এবং এসআই কামরুল হাসান ময়না তদন্ত রিপোর্ট সহ আনুসাংগিক কাগজ পত্রসহ লাশ ফেরত চান। কিন্তুু কাগজ পত্র ছাড়া লাশ হস্তান্তর করতে চাইলে বাংলাদেশের প্রতিনিধিরা কাগজ ছাড়া লাশ গ্রহনে অনিহা প্রকাশ করে। নিহতের ছোট ভাই হুমায়ুন মিয়া বলেন, আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। ভারতীয় গনমাধ্যমে প্রচার হয়েছে। অথচ কাগজ পত্র ছাড়া লাশ ফেরত দিতে চায়। আমরা পরিবার বাংলাদেশের বিজিবি, পুলিশের মাধ্যমে কাগজ পত্রসহ লাশ ফেরত চাই।

বিজিবির ধর্মঘর কোম্পানী কমান্ডার জানান, বৃহস্পতিবার (২৮ মে) বিকাল সাড়ে ৩টায় লোক লাশ ফেরত দেওয়ার কথা থাকলেও কাগজপত্রের জটিলতায় তা হয়নি। বিএসএফ এবং বিজিবির মধ্যে আজ দ্বিতীয় দফা পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বিজিবি জানায়, তাদের পক্ষ থেকে লাশের উপযুক্ত কাগজ পত্র বুঝে পেলে আমরা লাশ গ্রহন করতে প্রস্তুুত আছি। হবিগঞ্জ ব্যাটালিয়ন ৫৫ বিজিবি,র সহকারী পরিচালক নাসির উদ্দিন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দিনাজপুরে বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন, আটক ৩,উদ্ধার ১

দিনাজপুরে বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন, আটক ৩,উদ্ধার ১



 দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর সদর উপজেলার নয়নপুর এলাকার ধান ক্ষেত থেকে আরিফুল ইসলাম (১৯) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে কোতয়ালী থানা পুলিশ। নারী ঘটিত ঘটনায় হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে ২জনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে কোতয়ালী থানা পুলিশ। 
নিহত আরিফুল ইসলাম (১৯) দিনাজপুর সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়নের রূপম মিল এলাকার ওহাব উদ্দিনের ছেলে। সে জামালপুর জেলা শহরের ভগ্নিপতির বন্ধু ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপে কাজ করতো। 
 সকাল ৮টার দিকে লাশ উদ্ধারের পাশাপাশি সকাল ১১টার মধ্যে হত্যার নেপথ্যের নাটকীয় পুরো চিত্র জানতে পেয়েছেন কোতয়ালী থানা পুলিশ।
কোতয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বজলুর রশিদ জানান, নয়নপুর এলাকায় ফসলি জমিতে এক যুবকের লাশ পড়ে থাকার খবর পেয়ে সকাল ৮টায় অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে আরিফুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করা হয়।
নিহত আরিফুলের প্রেমিকা রেশমা আক্তার সিফাকে বাঙ্গীবেচার ঘাটে হিজড়া মানব পল্লী থেকে উদ্ধার করেন তারা। পরে তারা জানতে পারেন ওই প্রেমিকার বাড়ী ঘোড়াঘাট উপজেলার কালিতলা এলাকায়। 
ঘটনা সূত্রে জানা যায়,গেল বুধবার রাতে জেলা শহরের রামনগরের মানিকপীর নামক এলাকায় একটি বাড়ীতে ফর্তির আয়োজন করছিল তারা। এসময় সেখানে হাজির পাঁচ বন্ধু সাথে ফেনসিডিল এবং জুস পান করে অচেতন হয়ে পড়ে আরিফ। এসময় আরিফকে আটকে রেখে প্রেমিকা রেশমা আক্তারের নিকট ৩ লক্ষ্য টাকা মুক্তিপন দাবি করে। এমন সময় আরিফের শরীর বেশি  অসুস্থ হয়ে পরলে প্রেমিকা রেশমা আক্তার নিহত আরিফের বন্ধুদের কাছে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যেতে অনুরোধ করলে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়ার নাম করে মোটর সাইকেলেসহ লাপাত্তা হয়ে যায় তার দুই বন্ধু। অন্যদিকে তার প্রেমিকা রেশমা আক্তার সিফাকে নিজের হেফাজতে নিতে মৃদু সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে অন্য তিন বন্ধু।
উদ্ভুত পরিস্থিতিতে মধ্যরাতে রেশমা আক্তার সিফা হিজড়া পল্লীতে একজন হিজড়ার আশ্রয়ে তুলে দিতে বাধ্য হন তারা। খবর পেয়ে তাকে ভোরে রেশমাকে উদ্ধার করে কোতয়ালী পুলিশ। এরই মধ্যে নয়নপুর এলাকাল ধান ক্ষেতে অজ্ঞাত যুবকের মৃতদেহ পড়ে থাকার খবর পান তারা। লাশের শারিরিক এবং পোষাকের বিবরনের তথ্য মিলিয়ে অজ্ঞাত লাশের পরিচয় নিশ্চিত হন তারা। হত্যার নেপথ্যের পুরো কারন উৎঘাটনের পাশাপাশি লুৎফর রহমান এবং বিপ্লব ডন নামে দুই বন্ধুকে গ্রেপ্তার করেন। এছাড়াও জিজ্ঞাবাদের জন্য শাওন নামে আরেক বন্ধুকে আটক করা হয় । 
এসময় ঘটনাস্থল মানিকপীরের ওই বাড়ী তল্লাসি করে আরিফের পরনের পেন্ট এবং জুতাসহ আলামত উদ্ধার করা হয়েছে। পরে  দুপুরে দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের মর্গে লাশের ময়না তদন্তর জন্য পাঠানো হয়েছে।

নতুন আরও ৯ জন করোনা আক্রান্তসহ দিনাজপুরে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৮৮ জন

নতুন আরও ৯ জন করোনা আক্রান্তসহ দিনাজপুরে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৮৮ জন


দিনাজপুর প্রতিনিধি :দিনাজপুর জেলায় নতুন আরও ৯ জন করোনা (কোভিড-১৯) পজিটিভ ফলাফল এসেছে। 
এই নিয়ে দিনাজপুর জেলায় (কোভিড-১৯) পজিটিভ সংখ্যা সর্বমোট পূর্বে ১৭৯+৯ (বর্তমানে) =১৮৮ জন এর মধ্যে ১৩৯ জন পুরুষ ও ৪০ জন মহিলা এবং ৯ জন শিশু।
বৃহস্পতিবার রাত ৮ টায় সিভিল সাজর্ন মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ জানান,জেলায় নতুন ৯ জনের মধ্যে দিনাজপুর সদরে ২ জন পুরুষদ্বয়ের বয়স ৫৪ ও ৫৫, ফুলবাড়ী উপজেলায় ২ জন পুরুষদ্বয়ের বয়স ৪০ ও ৫৫, কাহারোল উপজেলায় ১জন পুরুষ (৪৮) আর ১ জন মহিলা (৫৫), বিরল উপজেলায় ১জন পুরুষ (২৪), হাকিমপুর উপজেলায় ১জন পুরুষ (৩৮) এবং খানসামা উপজেলায় ১জন পুরুষ (৩২) করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের সকলে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। বর্তমানে ১৩৪ জন হোম আইসোলেশনে এবং ১৭ জন প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ও হাসপাতালে ভর্তি ১ জন রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের ল্যাবরেটরীতে প্রেরিত নমুনা ১১২ টি পাঠানো হয়েছে।
 দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের ল্যাব থেকে ১০৩ জনের নমুনার ফলাফলের মধ্যে ৯ জনের করোনা (কোভিড-১৯) পজিটিভ এসেছে আর বাকী ৯৪ টির ফলাফল নেগেটিভ।
অদ্যাবধি ল্যাবটেরিতে প্রেরিত নমুনার সংখ্যা ৩০২১টি আর অদ্যবধি ফলাফল এসেছে ২৯৫৯ টি নমুনার। সর্ব মোট ১৮৮ জন ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর মধ্যে (দিনাজপুর সদর-৪৪ জন, কাহারোল-১১ জন, বোঁচাগঞ্জ-৯ জন, ফুলবাড়ী-৬ জন, পার্বতীপুর-১১ জন, নবাবগঞ্জ-২০ জন, ঘোড়াঘাট-১৯ জন, হাকিমপুর-৩ জন, চিরিরবন্দর-৬ জন, বিরল-২৩ জন, বিরামপুর-১৮ জন, বীরগঞ্জ-১১ জন ও খানাসামা-৭ জন)  মোট ১৩টি উপজেলায়। 

বর্তমানে মোট ৩৫ জন সুস্থ হয়েছেন তার মধ্যে সদরে-৯ জন, ফুলবাড়ী-১ জন, নবাবগঞ্জ-৪ জন, পার্বতীপুরে-৩ জন, কাহারোল-৭ জন, হাকিমপুর-২ জন, বোঁচাগঞ্জে-২ জন, ঘোড়াঘাট-১ জন, বিরামপুর-৩ জন, বিরল-২ জন এবং বীরগঞ্জ-১ জন। মৃত্যু বরন করেছেন ১ জন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য অনুসারে হোম কোয়ারেন্টাইনে ৮৭৫৯ জনের মধ্যে ৬৬০৬ জন সুস্থ থাকায় অব্যাহতি পেয়েছে। বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা দাড়িছে ২১৫৩ জন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে দিনাজপুর জেলায় ৯৩ জন হোম কোয়ারেন্টাইন গ্রহন করেছে। অদ্যাবধি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে প্রেরিত হয়েছেন ৩২১ জন এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন থেকে অব্যাহতি পেয়েছে ২১৬ জন। বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১০৫ জন।

উল্লেখ্য, গতকাল দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে চার জেলার সর্বমোট ১৮৮টি নমুনার ফলাফল হয়েছে তার মধ্যে ২৬টি পজিটিভ বাকী ১৬২ টি ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

সুদের টাকা না দিতে পারায় সহকারী অধ্যাপককে হাতুড়ি পিটা করলো

সুদের টাকা না দিতে পারায় সহকারী অধ্যাপককে হাতুড়ি পিটা করলো



মিঠুন কুমার রাজ, 
পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধি। 

 পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার চণ্ডিপুর কেসি টেকনিক্যাল কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. কাউয়ুম জোমাদ্দাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। তিনি এখন পিরোজপুর সদরের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন।   

গতকাল বুধবার ইন্দুরকানীর জোমাদ্দার হাঁটে প্রকাশ্যে স্থানীয় রফিকুল ইসলামের (রোতাপ) নেতৃত্বে হাতুড়ি ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালানো হয়। হামলায় গুরুত্বর আহত হন কাউয়ুম জোমাদ্দার।

আহত কাউয়ুম জোমাদ্দার বলেন, ‘কেসি টেকনিক্যালের অধ্যাক্ষ মো. ইউনুস স্বপল শীল হত্যা মামলায় জেলে যাওয়ায় আমি ভারপ্রাপ্ত অধ্যাক্ষের দায়িত্ব পালন করি। অধ্যাক্ষের সাথে রফিকুল ইসলামের রোতাপের দীর্ঘদিন ব্যক্তিগত শুত্রুতা থাকায় সেই সুযোগে কলেজের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নেওয়া ও অধ্যাক্ষকে চাকরিচ্যুত করার জন্য বিভিন্ন পর্যায় রোতাপ অনেক টাকা খরচ করেন।’

সহকারী অধ্যাপক বলেন, ‘অধ্যাক্ষ আবার স্বপদে বহাল থাকায় রফিকুল ইসলাম কলেজের সুযোগ সুবিধা না পাওয়ায় আমার কাছে সেই খরচের সুদ মূলে সুম্পূর্ণ টাকা দাবি করে এবং কৌশলে আমার কাছ থেকে ফাঁকা চেক ও স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়। তাতে বড় অংকের টাকা বসিয়ে আমার কাছ থেকে টাকা আদায় করার হুমকি দেয়।’

সহকারী অধ্যাপক কাউয়ুম জোমাদ্দার আরও বলেন, ‘ওই ঘটনার জের ধরে বুধবার রোতাপ ও অহিদুল তার দলবল নিয়ে বাজারে এসে প্রকাশ্যে হাতুড়ি ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারধর করে ও আমাকে লাঞ্চিত করে।’

অভিযোগ অস্বীকার করে রফিকুল ইসলাম রোতাপ বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা মিথ্যা। কাউয়ুম জোমাদ্দাদের কাছে আমার ছোট ভাই টাকা পাবে। সেই টাকা চাইতে গেলে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়।’

ইন্দুরকানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান বলেন, ‘চন্ডিপুর কেসি টেকনিক্যাল কলেজের সহকারী অধ্যাপক কাউয়ুম জোমাদ্দার সঙ্গে টাকা নিয়ে মারামারির কথা শুনেছি। থানায় অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মুক্তিযোদ্ধা সহ আরো ২ জন করোনায় আক্রান্ত

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মুক্তিযোদ্ধা সহ আরো ২ জন করোনায় আক্রান্ত



মিজানুর রহমান ইমন
ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মুক্তিযোদ্ধা সহ আরো নতুন দুইজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে । এ নিয়ে গফরগাঁও উপজেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ জন, তার মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৭ জন । উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, ২৮ মে বৃহস্পতিবার গফরগাঁও উপজেলায় ৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে, তার মধ্যে দুইজনের পজেটিভ আসে ।

আক্রান্ত একজন হলেন বাংলা সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা পৌর শহরের ৮নং ওয়ার্ডের শিলাশী এলাকার, এবং আরেক জন মশাখালি ইউনিয়নের  ঢাকাস্থ গফরগাঁও সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক ।

করোনার ছুটিতে বই পড়ায় ঝোঁক জবি শিক্ষার্থীদের/করোনায় বই’কে বন্ধু হিসেবে নিয়েছে জবি শিক্ষার্থীরা

করোনার ছুটিতে বই পড়ায় ঝোঁক জবি শিক্ষার্থীদের/করোনায় বই’কে বন্ধু হিসেবে নিয়েছে জবি শিক্ষার্থীরা



নিউজ রিপোর্টঃ  
ভালো লাগে না কিছুই। যেতে হয় না বিশ্ববিদ্যালয়ে, নেই ক্লাসের কোন পড়া। তাই সময় কাটাতে একমাত্র উপায় ছিলো ফেসবুক, সেটাও এখন বিরক্তির নাম। বাসার সামনে মামার ফুসকার দোকান পড়ে আছে কিন্তু মামা নেই। জমে না বন্ধুদের সাথে আড্ডা। ঘরে বসে‌ থাকা যেন একমাত্র কাজ। তাই সময় কাটানোর উপায় হিসেবে শুরু করেছি বই পড়া।

‘সাইকো,হলুদ বসন্ত, দ্যা ভিঞ্চি কোড, অপেক্ষা, সাতকাহনসহ ইতোমধ্যেই বিশ্বের (২০) অধিক বই পড়ে ফেলেছি নিমিষেই। যদিও ক্লাসের পড়ার বাহিরে অন্য কোন বই পড়ার আগ্রহ কখনোই ছিলো না তবে করোনা সংকটে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় বই পড়ার আগ্রহ দিন দিন বেড়েই চলেছে। ঠিক এভাবেই বলছিলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী ফারহানা খানম রূপা।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারীতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বন্ধ যেন চক্রবৃদ্ধি হারে বেড়েই চলেছে। কবে নাগাদ খুলতে পারে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সেই নিশ্চয়তা নেই কারো কাছেই। অনেক বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাস কার্যক্রম অনলাইনে চালু করলেও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে নেয়া হয়নি তেমন কোন ব্যবস্থা। তাই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বাসায় বসে নির্জীব সময় কাটাচ্ছেন।

অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে সময় কাটালেও সেটা এখন স্বাদহীন হয়ে পড়েছে। তাই ইতোমধ্যেই অনেকেই ধরিয়েছেন বইয়ের নেশা।

ঠিক তেমনি একজন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী লাকি আক্তার, ক্লাসের বইয়ের বাহিরে অন্য বই পড়ার আগ্রহ, উৎসাহ তেমন ছিলো না কিন্তু এই দীর্ঘ ছুটিতে দিনের বেশির ভাগ সময় তিনি বই পড়েই কাটান।

তিনি জানান, ‘সারাদিন বাসায় বসে থাকি। নামাজ ও কোরআন পড়া ছাড়া বাকি সময় বই পড়ে কাটাই। যদিও বই পড়ার অভ্যাস ছিলো না। তবে এখন বই পড়ায় আগের থেকে মনোযোগ বেড়েছে এবং সময়টাও ভালো ভাবেই পার হয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যেই ম্যাক্সিম গোর্কির-‘মা’, পৃথিবীর পাঠশালায়, সমরেশ মজুমদারের গর্ভধারিণী, প্রিয় আমার, মৈত্রেয়ী দেবীর- ন হন্যতেসহ দশটিরও অধিক বই পড়েছি। সামনের দিনগুলোতে আরো অনেক বই পড়ে শেষ করতে পারবো।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী শানিল বলেন, করোনা সংক্রমনের এই দুর্বিষহ দিনগুলোতে গৃহবন্দী জীবনে সকল কাজেই যেন একঘেয়েমি লাগে। যেসব কাজ আগে খুব আনন্দের সাথে করা হত, সেগুলোও এখন বিরক্তিকর অবস্থায় উপনীত হয়েছে। বাস্তবতা হলো, অলসতা আমাদের উপর ভর করে গ্রাস করে নিচ্ছে আমাদের পছন্দের নিত্যকর্ম। তার মধ্যে অন্যতম হলো বই পড়া। বই পড়ার অল্প-সল্প অভ্যাস যাদের ছিল, তাদের কাছে বই পড়াও এখন বিরক্তিকর বনে গিয়েছে। তবে যারা বই প্রেমিক, তাদের কাছে এই সময়টা খুবই উত্তম সময়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যস্ত জীবনে একাডেমিক পড়াশুনার চাপে, কিংবা ব্যাক্তিগত ব্যস্ততায় বই পড়ার জন্য সময় দেয়া হয়ে ওঠে না। এই অবসর সময়টাতে সুযোগ এসেছে সেই "বই পড়া" নামক প্রিয় অভ্যাসটি জমিয়ে তুলার।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মিথিলা দেবনাথ ঝিলিক বলেন,  ব্যাক্তিগতভাবে আমি ছোটখাটো একটা বইপোকা বলা যায়। উপন্যাস খুবই পছন্দের। অনেকগুলো বই সংগ্রহে ছিল। এই অবসরে প্রায় সবগুলো পড়ে শেষ করলাম। বই পড়ার মধ্যে একটা ব্যতিক্রমী অনুভূতি আছে। দীর্ঘদিন বই পড়েও কখনো সেই অনুভূতি উপলব্ধি করি নি। এবার বই পড়ে মনে হচ্ছে প্রতিটি শব্দের গভীরে প্রবেশ করতে পারছি। বস্তুত একডেমিক চাপ নেই, টিউশনি নেই, অন্যান্য কাজের কোনো ঝামেলা নেই, বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়া হচ্ছে না, সেই সাথে বৃষ্টির মৌসুম। সব মিলিয়ে এই সময়টা বই পড়ার জন্য এক অসাধারণ সময়। বই পড়ার প্রতি ঝোক যতটা ছিল, এই সময়টাতে তা আরো বহুগুণে বেড়ে গেছে। মনে হচ্ছে আমি বইয়ের মধ্যে হারিয়ে যাচ্ছি। যত পড়ি, আরো বেশি পড়ার ইচ্ছা তৈরি হয়। মনে হচ্ছে বইয়ের প্রতিটি কথা যেন হৃদয়ে গেথে যাচ্ছে। যারা বই পড়ার প্রতি আগ্রহী তাদেরকে বলব, এই সময়টা কাজে লাগান, এমন অবসর সময় হয়ত আর পাবেন না। পছন্দের বই সংগ্রহে না থাকলে অনলাইনে পিডিএফ সংগ্রহ করতে পারেন। জনপ্রিয় প্রায় সব বই অনলাইনে পাওয়া যায়। আর বই পড়ে যেসব জিনিস শেখা যায়, আমার মতে সেই শিক্ষাটুকু আর কোথাও পাওয়া যায় না। বই হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় শিল্পকর্ম। কত ঘটনা, কত বাস্তবতা, কত কল্পনা, কত শত অনুভূতি, সব কিছুকে সাহিত্যিক মাধুর্য দিয়ে কিংবা কাব্যিক ভঙ্গিতে উপস্থাপন করাটা সত্যিই সবচেয়ে বড় শিল্পকর্ম। আমি আশাবাদী সবার মধ্যে বই পড়ার অভ্যাসটি আরো প্রসারিত হবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আমেনা খাতুন বলেন, অধ্যয়ন প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য অতীব প্রয়োজনI আমি তাদের বাহিরে নই। প্রথমদিকে, আমি ফেইসবুকে দেখা  "কোভিট -১৯" দ্বারা সৃষ্ট বিভিন্ন ভয়াবহ পরিস্থিতির কারণে অধ্যয়ন করতে পারিনি।
তবে সময় সত্যিই চলে যায়। আর 
এই বিষয়টি বুঝতে পেরে আমি অনলাইন কার্যক্রম থেকে নিরুৎসাহিত হয়ে আমার পড়াশোনায় মনোযোগী হই। এতে আমি কোরআন, হাদিস ও কিছু একাডেমিক বিষয় পড়ি। অর্থসহ কোরআন তেলাওয়াতের জন্য আমি ফোন ব্যবহার করি। আমি ইতিমধ্যে ২-৩ টা হাদিসের বই শেষ করেছি যেমন মহাপ্রলয়, মৃত্যুর আগে ও হাশরের পরে, ফাজায়েলে আমল যা সামনে চলার পথে আমাকে সাহায্য করবে। এসবের পাশাপাশি আমি ইংরেজি শব্দকোষ, গ্রামার এমনকি গল্পের বই ও পড়ি।আমি প্রতিদিনই পড়ার চেষ্টা করি, কিন্তু মাঝে মাঝে পিতামাতার কাজে সাহায্য কারার জন্য পড়তে পারি না কারণ তাদেরকে সাহায্য কারাও আমার দায়িত্ব। অবশেষে, এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে একাকিত্বকে এড়িয়ে পড়াশোনাকেই আমি আমার সাথী হিসেবে নিয়েছি।

বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী মুজাহিদ বলেন, ‘বই পড়ার অভ্যাস পুরাতন হলেও এই ছুটিতে তা আরো বেড়ে গেছে। ক্লাস কোর্সের পড়া এগিয়ে রাখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের নাটক, উপন্যাস ও গল্পের বই পড়ছি। এছাড়াও মাঝে মাঝে চাকুরির বই পড়ে সময় পার করছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘সুস্থ মানসিকতার জন্য বই পড়া খুবই জরুরি। আর এই সময়টাও অযথা নষ্ট হবে না।’ তাই তিনি এই ছুটিতে সবাইকে বেশি বেশি বই পড়ার আহ্বান জানান।

এছাড়াও পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী সাকিব, জিনি, কম্পিউটার সাইন্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী কাউসার আলম এবং মৃত্তিকা ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী নিশাত তাহসিন অপির মতো আরো অনেকেই‌ জানান, বর্তমানে এই লম্বা ছুটিতে সময় কাটাতে বই পড়ায় তাদের ঝোঁক বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তারা দিনের বেশিরভাগ সময় বই পড়ায় তাদের ঝোঁক বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তারা দিনের বেশিরভাগ সময় বই পড়ে কাটান।

দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এই সময়টাকে অনেকেই বিনা কারণে নষ্ট করতে চান না। তাই কেউ পড়ছেন চাকুরির বই আবার কেউ পড়ে এগিয়ে রাখছেন ক্লাস অথবা কোর্সের পড়া। করোনার কারণে বন্ধ থাকার এই সময়টা অনেকের কাজে নিয়ে এসেছে বই পড়ার অপার সুযোগ।

সৃজনশীলতা, মননশীলতা এই সব গুণাবলির বিকাশে বই খুব ভালো বন্ধু। বই পড়ে যে নির্মল আনন্দ পাওয়া যায় তা অন্যকিছুতে প্রায় অসম্ভব। ভালো বই হলো আত্মশুদ্ধির শ্রেষ্ট উপায়।

মেধাবী ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল এর জম্মদিনে ছাত্রনেতা হাসান সাদীর শুভ কামনা ও শুভেচ্ছা

মেধাবী ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল এর জম্মদিনে ছাত্রনেতা হাসান সাদীর শুভ কামনা ও শুভেচ্ছা


ডা.এম.এ.মান্নান নাগরপুর(টাংগাইল)প্রতিনিধি: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সরকারি তিতুমীর কলেজ শাখার সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক মেধাবী জনপ্রিয় ছাত্রনেতা জ্বনাব মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল এর আজ শুভ জম্মদিন।কলেজে ছাত্র রাজনীতির মাধ্যমে ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয় হন মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল। রাজপথের বিভিন্ন আন্দোলন ও কর্মসূচীতে অগ্রগামী ভূমিকা রেখে চলছে এই মেধাবী ছাত্রনেতা । জুয়েল মোড়ল ছাত্রলীগ নেতা হলেও সাধারণ ছাত্রদের কাছেও রয়েছে অনেক গ্রহনযোগ্যতা। সরকারি তিতুমীর কলেজ ইউনিট টাংগাইল জেলা ছাত্র কল্যান পরিষদের সহ সভাপতি ও কলেজ শাখার সক্রিয় ছাত্রলীগ কর্মী নাগরপুরের কৃর্তি সন্তান জ্বনাব সজিব হুসাইন মোহা.হাসান বলেন,আমার প্রিয় রাজনীতি গুরু ও প্রিয় নেতা জুয়েল মোড়ল ভাই। দিক-নির্দেশক, পরিচ্ছন্ন রাজনীতির শুদ্ধ ছাত্রনেতা, বর্তমান সময়ের তরুন নেতৃত্বের রোল মডেল,সততা, নিষ্ঠার মাইল ফলক , আমার অভিবাবক, আমার আদর্শ,জুয়েল মোড়ল ভাই একজন কর্মীবান্ধব ও রাজপথের লড়াকু নেতা। সুষ্ঠু ধারার ছাত্র রাজনীতিতে বিশ্বাসী মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল ভাই। ছাত্র-ছাত্রীদের প্রয়োজনে সব সময় পাশে থাকেন আমার  নেতা জুয়েল মোড়ল ভাই।আমি  তার দীর্ঘায়ু কামনা করি,সরকারি তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগ আজ জুয়েল মোড়ল ভাইয়ের নেতৃত্বে অনেক শক্তিশালী। আমার এবং টাংগাইল জেলা ছাত্র কল্যান পরিষদের পক্ষ থেকে মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল ভাইকে তার শুভ জম্মদিনের  শুভেচ্ছা ও শুভ কামনা জানাই।                              শুভেচ্ছান্তে :                             সজিব হুসাইন মোহা.হাসান                                             সহ সভাপতি                          টাংগাইল জেলা ছাত্র কল্যান পরিষদ,সরকারি তিতুমীর কলেজ ইউনিট

দিনাজপুরের বিরামপুরে মদ পানে মৃতের সংখ্যা ৯ , হোমিও ঔষুধ ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

দিনাজপুরের বিরামপুরে  মদ পানে মৃতের সংখ্যা ৯ , হোমিও ঔষুধ ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার



দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বিরামপুরে  চোলাই মদ পান করে আজ বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৯। বিষাক্ত মদপানে স্বামী-স্ত্রী এবং আপন দুই ভাইসহ ৯ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) মোঃ কাজেম উদ্দিন । গুরুতর আহত অবস্থায় বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে  চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৫ জন । পুলিশ হোমিও ঔষুধ ব্যবসায়ী  আব্দুল মান্নানকে গ্রেপ্তার করেছে। 
পুলিশ জানায়, গতকাল  বুধবার থেকে আজ বৃহস্পতিবার  ভোর পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে  বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাদের মৃত্যু হয়।  
 ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে হোমিও ঔষুধ ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নানের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে বিরামপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের কারেছে। 
মৃত্যুর কারন হিসেবে   দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুল কুদ্দুস জানান,বিষাক্ত চোলাই মদ পান করার কারনে আক্রান্তদের কিডনী এবং ফুসফুস ড্যামেজ হয়ে যায়। অন্যান্ন অর্গান ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফলে এসব রোগীদেও বাচানো অসম্ভব হয়ে পড়ে।
এদিকে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের কথা জানিয়েছেন পুলিশ।
উল্লেখ্য বিরামপুর পৌরশহরে হোমিও দোকান থেকে রেক্টিফাইট স্পিরিট কিনে পান করে। এসব চোলাই মদ খেয়ে  মাদকসেবীরা অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। অসুস্থ্য হবার পর তাদের মৃত্যু হয়।

ইটভাটার কারণে বোরো ধানের শতভাগ বিনষ্টসহ আম, লিচু ও ভুট্টার ব্যাপক ক্ষতি

ইটভাটার কারণে বোরো ধানের শতভাগ বিনষ্টসহ আম, লিচু ও ভুট্টার ব্যাপক ক্ষতি



দিনাজপুর প্রতিনিধি :অবৈধ ইটভাটা মেসার্স মা ব্রিকিস মেনুফ্যাকচারের নির্গত বিষাক্ত গ্যাসের কালো ধোঁয়ায় বীরগঞ্জ আর্দশ গ্রামের প্রায় ২০ একর জমির বোরো ধানের শতভাগ বিনষ্টসহ আম,লিচু ও ভুট্টার ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়েছে।
দিনাজপুর বীরগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার কার্য্যালয়ে অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত ২১ মে   উপজেলার ৬ নং নিজপাড়া ইউনিয়নের ঢেপা ব্রীজ সংলগ্ন স্থানে অবৈধ ভাবে প্রতিষ্ঠিত ইটভাটা মেসার্স মা  ব্রিকিস মেনুফ্যাকচার ইটভাটার উতপাদন বন্ধ করেছে। এদিন তারা ভোর রাতের কোন এক সময়ের দিকে ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাস ছেড়ে দিলে আদর্শগ্রামের কয়েক কিলোমিটার এলাকায় কালো ধোয়ায় আছোন্ন হয়ে পড়ে। 
স্থানীয় ২৫ জন কৃষকের লিখিত অভিযোগ, ওই বিষাক্ত গ্যাসের কালো ধোয়ায় তাদের প্রায় ২০ একর জমির বোরো ধান সম্পন্ন জ্বলে গেছে, যেখান থেকে একমুঠো ধানও পাওয়া সম্ভব হবেনা। এছাড়াও ৪ একর জমির উপর থাকা একটি আম বাগানের সম্পন্ন আমের গোড়া পচে যাওয়ায় সমস্ত আম ঝড়ে যাচ্ছে। ক্ষতি হয়েছে গ্রামটিতে থাকা ভুট্টা ক্ষেত এবং লিচু বাগানও। এখন সেখানে শুধুই কৃষকের আহাজারী, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক-কৃষানীর আহাজারীতে ভারি হয়ে উঠছে আর্দশ গ্রামের প্রতিটি ঘর। 
করোনা মহামারীর এই সংকটময় মূর্হুতে তাদের এখন একটাই চাওয়া প্রশাসন যেন উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ আদায়ের ব্যবস্থা করে দিয়ে বেঁচে থাকতে সাহায্য করেন। 
সুজালপুর আরিফ বাজার গ্রামের মো: আব্দুল কাদেরসহ ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকেরা  বলছেন, মাঠের ধান কয়েকদিনের মধ্যেই ঘরে তোলা যেত অথচ হাজী  মো: সমশের আলী  তার ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাস ছেড়ে দিয়ে তাদের সর্বশান্ত করেছেন। তারা এখন নি:শ্ব, কিভাবে পরিবার পরিজনের অন্যবস্ত্রের ব্যবস্থা করবে তা বুঝে উঠতে পারছেনা। 
ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা স্থানীয় প্রশাসন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অবৈধ মা ব্রিকস্ ইটভাটার মালিকের নিকট উপযুক্ত ক্ষতিপূরন আদায়সহ সরকারী অনুমোদনহীন এধরণের ইটভাটাকে স্থায়ীভাবে বন্ধের দাবী করেছেন,যাতে করে ভবিষতে এমন ভাবে আর কাউকে ক্ষতির সন্মুখীন হতে না হয়।
অবৈধ ইটভাটার মালিক আলহাজ্ব সমশের আলী জানান,তার ব্যবসায়ী জীবনের ৪০ বছরের অভিজ্ঞতায় এমন ঘটনা কখনো ঘটেনি। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,ইট প্রস্তুতের জন্য তার কোনো সরকারী বৈধ কাগজপত্র নেই। এতোদিন তিনি সবাইকে ম্যানেজ করেই ব্যবসা চালিয়ে আসছেন।
বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা মনোরঞ্জন অধিকারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে সরজমিনে ঘুরে দেখেছি এবং কৃষকদের সাম্ভব্য ক্ষতির একটি প্রতিবেদন তৈরী করে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার বরাবরে ব্যবস্থা নেয়ার লক্ষে প্রেরন করেছি।
এব্যাপারে বীরগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা ইয়ামিন হোসেন জানান,অভিযোগটি তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কৃষকের যাতে কোনোরূপ ক্ষতি না হয় এবং ক্ষতিপূরণের বিষয়টি সর্বাগ্রে রেখেই প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে। প্রয়োজন হলে ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

করোনা থেকে নিজেকে সুরক্ষা রাখতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে চলতে হবে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল

করোনা থেকে নিজেকে সুরক্ষা রাখতে স্বাস্থ্য  অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে চলতে হবে                               -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল



 দিনাজপুর প্রতিনিধি॥- দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, মানুষের সচেতনতার বড়ই অভাব। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসকে উপক্ষো করে যেভাবে বিপনন কেন্দ্র গুলোত মানুষ ভীড় জমাচ্ছে। এতে করে করোণা সংক্রামনের ঝুকি বাড়ছে। মনে রাখা উচিত করোনা থেকে নিজেকে সুরক্ষা রাখতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে চলুন। সবাই সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।
২৮ মে ২০২০ বৃহস্পতিবার কাহারোল উপজেলা পরিষদ চত্বরে কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন (সিডিএ) এর আয়োজনে কর্মহীন মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল এসব কথা বলেন। এসময় ১০০ টি পরিবারের মাঝে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এতে প্রত্যেক পরিবার পায় ১০ কেজি চাল, আলু ২ কেজি, তেল আধা কেজি, লবণ আধা কেজি, বুটের ডাল ১ কেজি, সাবান ১পিচ। 
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মনিরুল হাসান, কাহারোল থানার ওসি মনোঞ্জ কুমার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল হোসেন প্রমূখ।

দিন দিন করোনা বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষ আতংকিত দিনাজপুরে নতুন করোনা আক্রান্ত ৩১ জন

দিন দিন করোনা বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষ আতংকিত দিনাজপুরে নতুন করোনা আক্রান্ত ৩১ জন



মামুনুর রশিদ,দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর জেলায় নতুন আরও ৩১ জন করোনা (কোভিড-১৯) পজিটিভ ফলাফল এসেছে। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭৯ জন।  

দিনাজপুর জেলায় (কোভিড-১৯) পজিটিভ সংখ্যা সর্বমোট পূর্বে ১৪৮+৩১ (বর্তমানে) =১৭৯ জন এর মধ্যে ১৩১ জন পুরুষ ও ৩৯ জন মহিলা এবং ৯ জন শিশু।

গত বুধবার রাত ৮ টায় সিভিল সাজর্ন মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ অফিসের তথ্য অনুসারে এই ৩১ জনের মধ্যে দিনাজপুর সদরে ৩ জন পুরুষদ্বয়ের বয়স ৩২ থেকে ৩৭ এর মধ্যে আর ১ জন মহিলা (৩০) এবং নবাগঞ্জ উপজেলায় ৮ জন পুরুষ আর ৫ জন মহিলা উভয়দ্বয়ের বয়স ২৯ থেকে ৫৫ এর মধ্যে এবং বিরামপুর উপজেলায় ৭ জন পুরুষ আর ১ জন মহিলা উভয়দ্বয়ের বয়স ২১ থেকে ৩৬ এবং চিরিরবন্দর উপজেলায় ২ জন পুরুষদ্বয়ের বয়স ৩২ ও ৬৭ এবং পার্বতীপুর উপজেলায় ১ জন পুরুষ(৫০) আর ২ জন মহিলাদ্বয়ের বয়স ৪৬ ও ২২ ও ১জন শিশু এক মাস বয়স করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের সকলে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। বর্তমানে ১৩৩ জন হোম আইসোলেশনে এবং ৯ জন প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ও হাসপাতালে ভর্তি ৪ জন রয়েছে।

গত ২৪ ঘন্টায় দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের ল্যাবরেটরীতে প্রেরিত নমুনা ৩৭ টি পাঠানো হয়েছে। গত বুধবার দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের ল্যাব থেকে ১৪৫ জনের নমুনার ফলাফলের মধ্যে ৩১ জনের করোনা (কোভিড-১৯) পজিটিভ এসেছে আর বাকী ১১৩ টির ফলাফল নেগেটিভ। অদ্যাবধি ল্যাবটেরিতে প্রেরিত নমুনার সংখ্যা ২৯০৯টি আর অদ্যবধি ফলাফল এসেছে ২৮৫৬ টি নমুনার।

সর্ব মোট ১৭৯ জন ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর মধ্যে (দিনাজপুর সদর-৪২ জন, কাহারোল-৯ জন, বোঁচাগঞ্জ-৯ জন, ফুলবাড়ী-৪ জন, পার্বতীপুর-১১ জন, নবাবগঞ্জ-২০ জন, ঘোড়াঘাট-১৯ জন, হাকিমপুর-২ জন, চিরিরবন্দর-৬ জন, বিরল-২২ জন, বিরামপুর-১৮ জন, বীরগঞ্জ-১১ জন ও খানাসামা-৬ জন)  মোট ১৩টি উপজেলায়। 

বর্তমানে মোট ৩২ জন সুস্থ হয়েছেন তার মধ্যে সদরে-৬ জন, ফুলবাড়ী-১ জন, নবাবগঞ্জ-৪ জন, পার্বতীপুরে-৩ জন, কাহারোল-৭ জন, হাকিমপুর-২ জন, বোঁচাগঞ্জে-২ জন, ঘোড়াঘাট-১ জন, বিরামপুর-৩ জন, বিরল-৩ জন এবং বীরগঞ্জ-১ জন। মৃত্যু বরন করেছেন ১ জন।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য অনুসারে হোম কোয়ারেন্টাইনে ৮৬৬৬ জনের মধ্যে ৬৫৬৫ জন সুস্থ থাকায় অব্যাহতি পেয়েছে। বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা দাড়িছে ২১০১ জন। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে দিনাজপুর জেলায় ২২৩ জন হোম কোয়ারেন্টাইন গ্রহন করেছে। অদ্যাবধি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে প্রেরিত হয়েছেন ৩২১ জন এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন থেকে অব্যাহতি পেয়েছে ২১৬ জন। বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১০৫ জন।

উল্লেখ্য গতকাল দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে চার জেলার সর্বমোট ১৮৮টি নমুনার ফলাফল হয়েছে তার মধ্যে ৩৬টি পজিটিভ আর ১টি ইনভেলিড এবং বাকী ১৫১টি ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

সরকারি ত্রাণ মানে ভিক্ষা নয়,এটি জনগণের অধিকার: বললেন চেয়ারম্যান মঈনুল হক

সরকারি ত্রাণ মানে ভিক্ষা নয়,এটি জনগণের অধিকার: বললেন চেয়ারম্যান মঈনুল হক



মোঃ হাবিবুর রহমান শাকিল ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধি:


সরকারি ত্রান মানে ভিক্ষা নয়, জনগণের টাকায় রাষ্ট্রীয় শস্য ভাণ্ডার। জনগণের সরকার, তাই জনগণের পাশে থাকার জন্য আছে সরকারের অঙ্গীকার। আর এটি বাস্তবায়নে করোনায় কর্মহীন দুস্থ পরিবারদের মাঝে উপজেলা প্রশাসন. পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে দেওয়া হচ্ছে ত্রান সামগ্রী। দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার শুরু থেকেই করোনা সংক্রমণ রোধে নানান সচেতনতামূলক কার্যক্রমের পাশাপাশি ইউনিয়নের কর্মহীন দুস্থ পরিবারদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রেখেছেন নীলফামারী জেলা ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ ময়নুল হক। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে অসহায় দরিদ্র মানুষের বাড়ী বাড়ী ছুটে গিয়ে খোজখবর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে পাওয়া উপহার সামগ্রীসহ ব্যত্তিগত উদ্যোগে ত্রান ও নগদ টাকাও বিতরন করেছেন চেয়ারম্যান জনাব মোঃ ময়নুল হক। এক সুত্রে জানা যায়, সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত মোট ৫৫ মেঃটন চাল ৫'হাজার ৫'শ পরিবারের মাঝে বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে ১৪০ পরিবার এবং ওএমএস এর ১৮'শ পরিবার সহ  ছোটখাটো সমস্যাগুলো সমাধানের মধ্যদিয়ে তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে প্রায় ৮০হাজার টাকার সহায়তা দিয়েছেন বলে জানান, মেম্বারমহল। চেয়ারম্যান সরকারি ত্রাণ সহায়তার পাশাপাশি ব্যক্তিগত ভাবেও বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন সহ বিপুল সংখ্যক মানুষকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করায় তার এমন কর্মকাণ্ডে এলাকার মানুষ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সুবিধাভোগীরা। 

সহায়তা পাওয়া মাজেদা বেগম জানায়, সোবায় ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি নেয়, কিন্তু কাহ কিছু দেয় না। পরে চেয়ারম্যানকে বলার পর ১০কেজি চাল, ডাল, আলু দিয়া আরও কোনও সমস্যা হইলে দেখা করিবার কইছে। এছাড়া ফজিলা বেওয়া জানায়, চেয়ারম্যান বাড়িতে যায়া চাউল ডাল আলু দিছে আল্লাহ্ যাদুর ভালো করুক। 

এবিষয়ে টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ ময়নুল হক কমেট বলেন, ত্রাণ কোন ভিক্ষা নয়, এটা মানুষের অধিকার, এখানে লজ্জার কিছু নেই। সরকারিভাবে যখন যা বরাদ্দ আসছে, আমি তাৎক্ষণিকভাবে মেম্বারদের নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে বিতরণ করি, যা এখনো অব্যাহত আছে। একজন চেয়ারম্যান হিসেবে ইউনিয়নের জন্য যা করা প্রয়োজন আমি তাই করছি।

ভোলা জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪২ জনে

ভোলা জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪২ জনে



মোঃ আওলাদ হোসেন 
স্টাফ রিপোর্টার,ভোলা,দৌলতখান।
------------------------------------------
কোভিড-১৯ তথা করোনায় এ আক্রান্ত দিন দিন বেড়েই চলছে।কোন অবস্থাতেই কমছে এর শক্তি।এযেন এক লাগামহীন ঘোড়া।ভোলার লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জ্বর-শ্বাসকষ্ট নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া ৫০ বছরের আলমগীর নামে এক ব্যাক্তির শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। লালমোহন উপজেলার চরভূতা ইউনিয়নের হরিগঞ্জের বাসিন্দা ওই ব্যক্তির লালমোহনে ২৩ মে মৃত্যু হয়। পরে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার পর বুধবার (২৭ এপ্রিল) রাতে রিপোর্ট পজেটিভ আসে। মৃত ওই ব্যক্তির সংস্পর্শে আসায় লালমোহন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তিন জন ডাক্তারসহ বেশ কয়েকজন নার্স ও স্টাফকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ভোলা সিভিল সার্জন রতন কুমার ঢালী।

এদিকে বোরহানউদ্দিনের এক স্বাস্থ্যকর্মীসহ জেলায় নতুন করে আরো ১৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে সদর উপজেলায় ৪ জন,দৌলতখান উপজেলায় ১ জন, বোরহানউদ্দিনে ২ জন ও লালমোহনে ৩ জন রয়েছে। এর মধ্যে লালমোহনের এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪২ জনে।

নাটোরে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ সরকারি গাছ স ' মিলে

নাটোরে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ সরকারি গাছ স ' মিলে



রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের লালপুরে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ সরকারি গাছ স" মিলে পাওয়া গেছে। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে নানা গুন্জন শুরু হয়েছে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ( ২৮ মে) দুপুরে আড়বাব ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ মেহেরুল ইসলাম ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ একটি শিশুগাছ ভ্যান যোগে সালামপুর বাজারস্থ একটি স" মিলে পাঠালে স্থানীয় লোকজন আটকিয়ে দিয়ে ইউনিয়ন ভুমি সহকারি কর্মকর্তা কে জানায়। 

আড়বাব ইউনিয়ন ভুমি সহকারি কর্মকর্তা মো: বেলাল হোসেন রাস্তা থেকে কেটে নেয়া সরকারি গাছ  আতাউর রহমানের স" মিলে ডালসহ ৮ টুকরা শিশু গাছ, সাজদার রহমানের স"মিলে ৩ টুকরা শিশু গাছ জব্দ করেন। এছাড়া আড়বাব ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ২৩ টুকরা ডালসহ শিশু গাছ, রবিউল ইসরামের বাড়ির পাশে ২ টুকরা রেইনটি কড়ই গাছ পান।

আড়বাব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক  এমদাদুল হক বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা রাস্তার সরকারি গাছ চৌকিদার দিয়ে স" মিলে বিক্রি করছে, আমরা তা আটকিয়ে তহশীলদার, এসিল্যান্ড কে জানানো হয়েছে। 

ভ্যান চালক রাশিদুল ইসলাম বলেন, মেহেরুল চৌকিদার আমাকে গাছ তুলে দিয়েছে, তা স" মিলে নামিয়ে দেওয়ার জন্য আমি নামিয়ে দিয়েছি। এ ব্যাপারে আমি আর কিছু জানি না ।

মেহেরুল চৌকিদার বলেন, ভ্যান ওলা ভুলে স" মিলে নামিয়ে দিয়েছে। 

ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, ঝড়ে কিছু গাছ ভেঙ্গে পড়েছিল,  তহশীলদার, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনওকে জানিয়ে চৌকিদার দিয়ে পরিষদের হেফাজতে রাখা হয়েছে, অথচ আমার বিরুদ্ধে একটি চক্র যড়যন্ত্র করছে। 

ইউনিয়ন ভুমি কর্মকর্তা মো: বেলাল হোসেন জানান, সংবাদ পেয়ে সেখানে গিয়ে চেয়ারম্যান সাহেবকে বলেছি, তার হেফাজতে রাখার জন্য।

নাটোর বড়াইগ্রামে বৃষ্টির পানির নিচে কৃষকের পাঁকা ধান

নাটোর বড়াইগ্রামে বৃষ্টির পানির নিচে কৃষকের পাঁকা ধান


 

রাজশাহী ব্যুরো

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় এবার ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। দিগন্ত্ম জোড়া ফসলের মাঠে পাকা ধানের সোনালী শীষে দোল খা"িছল কৃষকের স্বপ্ন। কিন্তু কৃষকের সেই স্বপ্ন তলিয়ে গেছে বৃষ্টির পানিতে।
ঘূর্ণিঝড় আম্পান এর প্রভাবে এক সপ্তাহের টানা বৃষ্টিপাতের কারণে গোটা উপজেলার অধিকাংশ নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে যায়। খাল, বিল, ডোবা, জলাশয় পানিতে ভরে গেছে। ফলে উপজেলার কয়েকশ" একর জমির বোরো ধান বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। ধানের সঙ্গে তলিয়ে গেছে কৃষকের সারা বছরের স্বপ্ন। এতে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা।
বড়াইগ্রাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন জানান, উপজেলায় এ বছরে ৪ হাজার ৩০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। তার মাঝে ৬ হেক্টর জমিতে ধান অতিরিক্ত ভারী বর্ষণের কারণে পানির নিচে তলিয়ে গিয়েছে। তার পরেও ধানের বাম্পার ফলনে উৎপাদন লক্ষ্য মাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করেন উপজেলা কৃষি বিভাগ। তিনি বলেন, পানিতে তলিয়ে যাওয়া বোরো ধান কেটে বাড়ি আনতে কৃষকের কয়েক গুণ বেশি পরিশ্রম হবে। তারপরও সোনালী ফসল ঘরে তুলতে দুর্ভোগ পোহাতে হ"েছ। অতিরিক্ত ভারী বর্ষণের কারণে ভেজা ধান ঘরে তোলা ও ধান মাড়াই করে শুকাতে গিয়ে বিপদে পড়তে হ"েছ কৃষকদের। চোখের সামনেই নষ্ট হয়ে যা"েছ কষ্টে উৎপাদিত শত শত একর জমির ধান।
উপজেলার চান্দাই ইউনিয়ন ও মাঝগাঁও ইউনিয়নের কয়েক জন কৃষক জানান, জমিতে সম্পূর্ণ ধান পেকেছে। কিন্তু কয়েক দিন ধরে বৃষ্টি হওয়ায় জমির পাকা ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। ধান গাছ শীষের নীচের দিক থেকে পঁচে যা"েছ। বিপাকে পড়েছি আমরা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৩ জনের সনাক্ত.শিবগঞ্জ পৌর এলাকার করোনা আক্রান্তদের দায়িত্ব নিলেন- মেয়র রাজিন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৩ জনের সনাক্ত.শিবগঞ্জ পৌর এলাকার করোনা আক্রান্তদের দায়িত্ব নিলেন- মেয়র রাজিন



মো:শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার অন্যান্য উপজেলার পাশাপাশি শিবগঞ্জে আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা। এত দিন এই উপজেলায় বিভিন্নি ইউনিয়নে আক্রান্ত হলেও গতকাল নতুনভাবে দুজন আক্রান্ত হয়েছেন যারা পৌর এলাকার বাসিন্দা। শিবগঞ্জে এখন পর্যন্ত ৯ জন এবং জেলায় মোট ৫২ জনের দেহে করোনা সনাক্ত হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৩ জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে ।
গতকাল ২৭ মে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভাইরোলজি ল্যাবে ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় এই ৩ জনের করোনা ভাইরাস সংক্রমণের রিপোর্ট সিভিল সার্জন অফিসে আসে। যার মধ্যে তিনজন সংক্রমিত এবং ৯১ জন নেগেটিভ রিপোর্ট আছে তাদের মধ্যে দুজন মহিলা রয়েছে মহিলা দুজনের বয়স ৩০ এর মধ্যে এবং পুরুষের বয়স ৩৫ বছর।
তারা গাজীপুর থেকে শিবগঞ্জে এসেছে তাদেরকে হোম কোয়ারেনটাইনে রাখা হয়েছিল। এ তিনজনের মধ্যে দুজন স্বামী স্ত্রী।
এদিকে করোনার এমন কঠিন পরিস্থিতিতে শিবগঞ্জ পৌর এলাকায় প্রথম করোনা সনাক্ত হওয়া রোগীদের চিকিৎসা সহ সব দায়িত্ব নিয়েছেন মেয়র কারিবুল হক রাজিন।
করোনা সনাক্তদের বাড়িতে জরুরি খাদ্য সরবরাহ চিকিৎসা সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান নগদ অর্থ দান আক্রান্তদের যেন অমানবিক বৈষম্যের শিকার না হয় তা সচেতনতা বৃদ্ধি করাসহ যাবতীয় দায়িত্ব নিয়েছেন এই তরুণ মেয়র।
কারিবুল হক রাজিন বলেন পৌর এলাকায় কারো করোনা পজিটিভ হলে তার পাশে থাকব চিকিৎসা, পরামর্শ, খাদ্য সামগ্রী বিতরণের ব্যবস্থা করাসহ তাদের চিকিৎসায় যত টাকা ব্যয় হবে চেষ্টা করব তাদের পাশে দাঁড়াতে।
তিনি আরো বলেন, এরই মধ্যে করোনা আক্রান্তদের বাড়িতে খাদ্য পাঠাচ্ছি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি তাদের বিভিন্ন পরামর্শসহ বিভিন্ন সহায়তার আশ্বাস দিয়েছি । কারো কাছে নগদ অর্থসহ বিভিন্ন সহযোগিতা পাঠানোর চেষ্টা করছি।
উল্লেখ্য, জেলায় গত ৭ এপ্রিল থেকে শুরু করে পর্যায়ক্রমে বুধবার ২৭ মে পর্যন্ত ১৮৩৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠানো হয় এর মধ্যে ২৭ শে মে ৬২ জনের নমুনা পাঠানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৬৭৬ জনে রিপোর্ট পাওয়া গেছে, তার মধ্যে পজিটিভ ৫২ জন, বাঁকিরা নেগেটিভ। রিপোর্ট পেন্ডিং রয়েছে ১৬০ টি। সংক্রমিত ৫২ জনের মধ্যে ২ জন সুস্থ হয়েছেন অন্যরাও ভালো রয়েছেন।

স্বাস্হ্য বিধি মেনে শিবগঞ্জের শাহাবাজপুর ইউপির উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা

স্বাস্হ্য বিধি মেনে শিবগঞ্জের শাহাবাজপুর ইউপির উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা



মো:শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :

শিবগঞ্জ উপজেলার শাহাবাজপুর ইউপির ২০২০- ২০২১ অর্থ বছরের বার্ষিক বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। আজ বৃহষ্সপপতবার সকালে ইউনিয়ন পরিষদ চত্ববে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে বাজেট সভায় সভাপতিত্ব করেন ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক তোজাম্মেল হক।উপস্হিত ছিলেন ওয়ার্ড সদস্য আব্দুর রশিদ ,জাকির হোসেন,ওয়ালিদ হাসান সহ অন্যান্য সদস্যগণ। সভায় সম্ভাব্য আয় ধরা হয়েছে ২ কোটি ২১ লাখ ৮০ হাজার ৯শত ঊনআশি
টাকা এবং সম্ভাব্য ব্যয় ১কোটি ৯৮ লাখ ৩৪ হাজার ৯ শত ৭৯ টাকা, যা স্থিতি ২৩ লাখ ৪৬ হাজার টাকা বলে জানা গেছে। বাজেট উপস্থাপন করেন ইউপি সচিব মোঃ আবদুল খালেক।

সিরাজগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুই জনের মৃত্যু!

সিরাজগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুই জনের মৃত্যু!


 মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলাপ্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জে করোনার উপসর্গ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাসহ ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিদ্বয়সহ তাদের পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করেছে সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগ।
তারা হলেন, সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার মাছুমপুর মহল্লার যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কবি মোয়াজ্জেম হোসেন (৬৯) ও কাজিপুর উপজেলার শুভগাছা বড়বাড়িয়া গ্রামের আবুল কালাম (৫৫)। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম হীরা এবং কাজিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোমেনা পারভিন পারুল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
এ দুই জন কর্মকর্তা প্রতিনিধিকে জানান, মুক্তিযোদ্ধা মোয়াজ্জেম হোসেন দীর্ঘদিন ধরেই হৃদরোগে ভুগছিলেন। দু’দিন ধরে তার জ¦র ও শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। বৃহস্প্রতিবার ভোর রাতে নিজ বাড়িতে তিনি মারা যান। এদিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে শুভগাছা বড়বাড়িয়া গ্রামের আবুল কালাম সকালে মারা যান। উপজেলা করোনায় মৃত দাফন কমিটির নেতৃত্বে তাদের দাফন সম্পন্ন্য করা হয়েছে। সেইসাথে তাদের পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থ্কাার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে তারা উল্লেখ করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আম ব্যবসায়ীদের জন্য হোটেল নির্ধারণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আম ব্যবসায়ীদের জন্য হোটেল নির্ধারণ



মো:শামিম উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আমের রাজ্য।করোনার প্রাদূর্ভাবে বহিরাগত আম ব্যবসায়ীদের কথা ভেবে শিবগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন দুটো আবাসিক হোটেলকে নির্ধারণ করেছে।

শিবগঞ্জ মনাকষা মোড়ে অবস্থিত মৌচাক আবাসিক হোটেল।অপরটি শিবগঞ্জ থানা গেটের সামনে হোটেল প্যারাডাইস(আবাসিক)


দুটো আবাসিক হোটেলের প্রোপাইটর দূরুল হোদা ও সাইফুল ইসলাম (মিটুল খান) জানান,আমরা বহিরাগত আম ব্যবসায়ীদের থাকার জন্য সর্বোচ্চ ছাড় দিবো,আমরা যদি আমাদের আম চাষী ভাইদের সাহায্য করি আমাদেরই সু-নাম হবে।বরাবরের মতোই আমরা সফল হবো।

শিবগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন জানায়,এবছর বিভিন্ন এলাকা হতে আগত আম ব্যবসায়ীদের সুবিধার জন্য শিবগঞ্জ উপজেলার ২টি আবাসিক হোটেল নির্ধারণ করা হয়েছে।যাতে করে শিবগঞ্জ উপজেলায় তারা নিরাপদ থাকে।

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু




রাজশাহী ব্যুরো
নাটোরের বাগাতিপাড়ায় পানিতে ডুবে সিনহা (৭) নামে এক  শিশুর মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার সোনাপুর এলাকার হিজলি দিঘাপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সিনহা নাটোর সদর উপজেলা জাঠিয়ান গ্রামের জালাল উদ্দীনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়,  সিনহা এই ঈদে মায়ের সাথে নানার বাড়িতে বেড়াতে আসে। গতকাল বিকেল ৩ টার পর থেকে শিশু সিনহাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। এ নিয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইকিংও করা হয়। তাকে খুঁজাখুজিঁর পর তাকে পাওয়া যায়নি। পরে আজ সকালে বাড়ির পাশের পুকুরে মৃত দেহটি ভেসে উঠে।  স্থানীয়দের ধারনা খেলতে গিয়ে পুকুরের পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়েছে।

বাগাতিপাড়া খানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি নাজমুল হক জানান, আমরা ঘটনা শুনেছি। পরিবারের পক্ষ থেকে আজ সকালে বিষয়টি আমাদের জানানো হয়েছে।  আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবো এবং তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করবো।

মাধবপুরে ক্রিকেট খেলা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, মা ছেলে আটক

মাধবপুরে ক্রিকেট খেলা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, মা ছেলে আটক



লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার আন্দিউরা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মীরনগর গ্রামে ক্রিকেট খেলা নিয়ে সংঘর্ষে শুকুর মিয়া (৩০) নামে একজন মারা গেছেন, বৃহস্পতিবার (২৮-মে) সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে মাধবপুর 

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন জানান, মীরনগর গ্রামের মৃত আব্দুল হালিমের ছেলে শুকুর মিয়ার ছেলে ও তার ভাগিনা সুহেল মিয়া বাড়ির সামনে ক্রিকেট খেলা করছিল, এ সময় একটি ছক্কা হয়েছে কি হয় নি এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া সুষ্টি হয় পরে বাড়ির মহিলারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে, হঠাৎ করে এ সময় শুকুর মিয়া অসুস্থ হয়ে 

পরে গুরুতর অবস্থায় তাকে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন কি ভাবে শুকুর মিয়া মারা গেছেন তা স্পট নয় ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পেলে, মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে এ ঘটনায় নিহতের বোন জুলেখা বেগম ও ভাগনে সুহেল মিয়া কে আটক করা হয়েছে।

মাধবপুরে মামনি হাসপাতালে ডিসিনফেকশন চেম্বার স্থাপন

মাধবপুরে মামনি হাসপাতালে ডিসিনফেকশন চেম্বার স্থাপন



লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:

হবিগঞ্জের মাধবপুরে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে মামনি হাসপাতালে জীবানুনাশক টানেল স্থাপন করা হয়েছে বৃহস্পতিবার (২৮-মে) বিকালে মাধবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও মামনি হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব আতিকুর রহমান জীবানুনাশক টানেলটি উদ্বোধন করেন।

এ সময় অন্যন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ সফিকুল ইসলাম, মাধবপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রোকন উদ্দিন লস্কর, মাধবপুর প্রেসক্লাবের বর্তমান সেক্রেটারি সাব্বির হাসান, মাধবপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আলাউদ্দিন আল রনি, মাধবপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বাবুল হোসেন খাঁন, হাসপাতাল ভবনের মালিক মাসুক মিয়া প্রমুখ।

মামনি হাসপাতালের পরিচালক মাধবপুর প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি আবুল খায়ের জানান, হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক,স্টাফ ও আগত রোগীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা চিন্তা মাথায় রেখে আমরা এই টানেলটি স্থাপন করেছি।

বাংলাদেশি যুবককে পিটিয়ে মারল ভারতীয়রা লাশ হস্তান্তর করেনি ৪ দিনেও

বাংলাদেশি যুবককে পিটিয়ে মারল ভারতীয়রা লাশ হস্তান্তর করেনি ৪ দিনেও


লিটন পাঠান হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

লোকমান হোসেন (৩২) নামে এক বাংলাদেশি যুবককে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে ভারতীয় নাগরিকরা। এরপর চারদিন পেরিয়ে গেলেও লাশ হস্তান্তর করেনি ভারতীয় প্রশাসন।

লোকমান মিয়া মাধবপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী ধর্মঘর ইউনিয়নের মালঞ্চপুর গ্রামের মৃত আবদুল হাসিমের ছেলে।

নিহতের পরিবার জানায়, গত ২৪ মে অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতের ত্রিপুরার মোহন এলাকায় ফুফুর বাড়ি যাচ্ছিলেন লোকমান। তিনি মোহনপুর চা বাগানে পৌঁছতেই এক দল ভারতীয় নাগরিক তাকে গরুচোর সন্দেহে এলোপাতাড়ি পিটাতে থাকে। এসময় তিনি বেড়াতে এসেছেন জানালেও ভারতীয়দের মন গলেনি।

খবর পেয়ে পশ্চিম ত্রিপুরার সিধাই থানার পুলিশ মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে লোকমানের মৃত্যু হয়। পরে মাধবপুর পুলিশের ইন্সপেক্টর মোরশেদ আলমকে মৌখিকভাবে অবগত করেন সিধাই থানার ওসি বিজয় সিং।

বুধবার বিকালে সীমান্তের ১৯৯৪/৪ এস পিলারের কাছে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক হয়। ভারতের পক্ষে ১২০ ব্যাটালিয়নের মোহনপুর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার ইন্সপেক্টর শশি কান্ত ও বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন ৫৫ বিজিবির ধর্মঘর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার দেলোয়ার হোসেন।

এদিন মোহনপুর সীমান্ত দিয়ে লাশ হস্তান্তর করার কথা ছিল। কিন্তু ভারতীয় পুলিশ ময়নাতদন্ত, সুরতহাল রিপোর্ট আনুসাঙ্গিক কাগজপত্র ছাড়া লাশ হস্তান্তর করতে চায়। এতে বাংলাদেশের প্রতিনিধিরা অস্বীকৃতি জানায়। ফলে লাশ গ্রহণ করেনি বিজিবি।

নিহতের ছোট ভাই হুমায়ুন বলেন, আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। ভারতীয় গণমাধ্যমে বিষয়টি প্রচার হয়েছে। অথচ কাগজপত্র ছাড়া লাশ ফেরত দিতে চায়। আমরা বিজিবি, পুলিশের মাধ্যমে কাগজপত্রসহ লাশ চাই।

হবিগঞ্জ ব্যাটালিয়ন ৫৫ বিজিবির সহকারী পরিচালক নাসির উদ্দিন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের তালিকায় অনিয়ম, দুই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের তালিকায় অনিয়ম, দুই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত



এস.এম অলিউল্লাহ  জেলা প্রতিনিধি,ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ

 করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত ও হতদরিদ্র পরিবারের জন্য দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহারের তালিকা প্রণয়নে অনিয়মের অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও একজন সদস্যকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) দুপুরে তাদেরকে বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপান জারি করা হয়েছে।

বরখাস্তকৃতরা হলেন, জেলার বিজয়নগর উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন ভূইয়া ও নবীনগর উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির আহমেদ এবং বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য তাহের মিয়া।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খাঁন মুঠোফোনে দুই ইউপি চেয়ারম্যান ও এক সদস্য সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার বিষয়টি মিডিয়াকে নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও হতদরিদ্র ৫০ লাখ পরিবারকে ঈদ উপহার হিসেবে মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে আড়াই হাজার টাকা করে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ঈদ উপহার দেয়া হবে ৭৫ হাজার পরিবারকে। ইতোমধ্যে ২৫ হাজারেরও বেশি পরিবারের কাছে উপহারের টাকা পৌঁছেছে। তবে এই উপহারের তালিকা তৈরিতে বিষ্ণুপুর ইউপি চেয়ারমরম্যান জামাল উদ্দিন ভূইয়া ও বীরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান কবির আহমেদ এবং সদস্য তাহের মিয়ার বিরুদ্ধে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠে। জেলা প্রশাসন অভিযোগ তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগে চিঠি লিখে।

হাজারো ক্ষুদার্ত মানুষকে দৈনিক খাবার বিতরন আজো সম্পন্ন

হাজারো ক্ষুদার্ত মানুষকে দৈনিক খাবার বিতরন আজো সম্পন্ন



রিয়াজুল করিম রিজভী প্রতিনিধি চট্টগ্রাম।

করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের মাঝে মানবতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম ঈদের আনন্দ ভাগ করে নিয়েছে। করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় মাঠে থেকে কাজ করে যাচ্ছে যুব স্বেচ্ছাসেবকরা। পবিত্র ঈদ-উল- ফিতরের মানুষের সেবা দিয়ে কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবকরা। মানবিক সহায়তা কর্মসূচীর আওতায় বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রাম সিটি ইউনিটের ব্যবস্থাপনায় যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রামের বাস্তবায়নে এইচ এস বি সি ব্যাংকের অর্থায়নে সামাজিত দূরত্ব বজায় রেখে নগরীর এক হাজার পরিবারের মাঝে রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের পক্ষ আজ ঈদের তৃতীয় দিনে ঈদ উপহার হিসেবে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য ও জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ শেখ শফিউল আজম এর তত্ত্বাবধানে নগরীর মির্জাপুলস্থ ডেকোরেশন গল্লিতে অসহায়, দরিদ্র ও নি¤œবৃত্ত পরিবারের মাঝে উপহার বিতরণ করা হয়। চট্টগ্রাম সিটি ইউনিটের সেক্রেটারী আব্দুল জব্বারের পরিচালনায় নগরীর দেব পাহাড় এলাকায় অসহায়দের মাঝে, বাক প্রতিবন্ধীদের ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়।
এছাড়াও যুব রেড ক্রিসেন্ট, চট্টগ্রামের যুব প্রধান মোঃ ইসমাইল হক চৌধুরী ফয়সাল এর নেতৃত্বে জেমিসন রেড ক্রিসেন্ট মাতৃসদন হাসপাতালে, ফাতেমা বেগম রেড ক্রিসেন্ট রক্তদান কেন্দ্র, থ্যালাসেমিয়া সেন্টারের কর্মকর্তা-কর্মচারী, জামিয়া আহম্মদ মাদ্রাসায়, বাংলাদেশ মহিলা সমিতি এতিমখানায়, নগরীর দুই নাম্বার গেইট, আকবর শাহসহ বিভিন্ন এলাকায় ভাসমান মানুষের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়। উক্ত কার্যক্রম সমূহে উপস্থিত ছিলেন জেলা ইউনিট লেভেল অফিসার আবদুর রশিদ খান, সিটি ইউনিট লেভেল অফিসার মুহাম্মদ ইয়াহইয়া বখতিয়ার, ক্রীড়া ও প্রচার প্রকাশনা বিভাগীয় প্রধান কৃষ্ণ দাশ, সিনিয়র যুব সদস্য জৌর্তিময় ধর, কার্যকরী পর্ষদ সদস্য ও যুব স্বেচ্ছাসেবকরা।

কেমন হবে করোনায় কর্মক্ষেত্র

কেমন হবে করোনায় কর্মক্ষেত্র



রিয়াজুল করিম রিজভী প্রতিনিধি চট্টগ্রাম

করোনার এই তান্ডব কবে শেষ হচ্ছে এর জানা নেই কারো। তবে করোনাকে সঙ্গে নিয়ে চলতে শিখার জন্য পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।এই ক্ষেএে মাস্ক পড়া সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা এবং কর্মক্ষেএে স্বাভাবিক আলো বাতাস চলাচল নিশ্চিতে গুরুত্ব দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

ধীরে ধীরে লকডাউন তুলে নিচ্ছে অনেক দেশ।এর মধ্যে বাংলাদেশ ও শিথিল করে যাচ্চে লকডাউন।তবে এতে সবথেকে বড়ো প্রসঙ্গ এসেছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি। করণীয় ঠিক করতে তিন বিষয়ের উপর জোর দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।তিনটি শর্তের উপর গুরুত্ব দিচ্ছেন তারা।

এর প্রথম শর্ত হচ্ছে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখা। যেভাবে হোক অন্তত তিন ফুট দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। তবে বাংলাদেশের জনসংখ্যার ঘনত্ব বেশি বলে এটি রক্ষা করা বেশ কঠিন।এক্ষেত্রে বাহিরে পা দেওয়ার আগে পড়তে হবে মাস্ক। নিতে হবে সকল দরকারি সুরক্ষা সামগ্রী।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা মোহাম্মদ মুরাদ হোসেন জানিয়েছেন। সকলের যেহেতু ঘর থেকে বের হতে হবে প্রয়োজনীয় কাজে।তাই সকলের সবার আগে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সাধারণ জনগণের মধ্যে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে তাই ঘর থেকে বের হলে এটিতে অন্য জন ও সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি শতভাগ।

হাঁচি কাশি থেকে শুরু করে বস্তুর উপর লেগে থাকা জিবাণুতে ও আছে সংক্রমন এর ঝুঁকি।সে কারণেই বারবার হাত ধোয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি দেওয়া হচ্ছে সহকর্মীদের সাথে মুখোমুখি কথা বলা এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ।

কোন ভাবেই রোগীর সংখ্যা বাড়তে দেওয়া যাবে না বলে জানিয়েছেন তারা । এতে সকলকেই অবশ্যই স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে বলা হচ্ছে বার বার। দেওয়া হচ্ছে ঘরের খাওয়া খাওয়ার  তাগিদ।

যশোরে যুবকের টাকা ও ফোন ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

যশোরে যুবকের টাকা ও ফোন ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ



মোরশেদ আলম
 যশোর ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি। 

যশোর শহরতলী ঝুমঝুমপুর বশির বাঁশতলা নামকস্থানে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা, রাজু হোসেন (২০) নামে এক যুবককে গতিরোধ করে মেহেগুনী বাগানে নিয়ে বেঁধে রেখে হুমকীর এক পর্যায় মারপিট করে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় বলে অভিযোগ পাওয়া যায় । 

এ ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এঘটনায় আহত রাজু হোসেনের বড় ভাই তিতাস উদ্দিন বাদি হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখ করে কোতয়ালি মডেল থানায় এজাহার দায়ের করেছেন।

মামলার আসামীরা হচ্ছে, যশোর সদর উপজেলার ঝুমঝুমপুর বশির বাঁশতলার আব্দুর রশিদের ছেলে রকি, হাসান আলীর ছেলে সম্রাট, মনির হোসেন ওরফে ফল মনিরের ছেলে শাহিন, জসিমের ছেলে রানা, ইকবল হোসেনের ছেলে ইমরান, আমজাদ আলীর ছেলে তৌহিদসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জন।

তিতাস উদ্দিন এজাহারে উল্লেখ করেন, তার ছোট ভাই রাজু হোসেন লেখাপড়া করে। উক্ত আসামীরা এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করে বেড়ায়। গত ২৩ মে দুপুরে রাজু হোসেন বাইসাইকেল যোগে ঝুমঝুমপুর কাঁচা বাজারে যাচ্ছিল। দুপুর ২ টায় ঝুমঝুমপুর বশির বাঁশতলা নামকস্থানে পৌছালে উক্ত আসামীরা তার সাইকেলের গতিরোধ করে।

 তাকে মেহেগুনী চারা বাগানের মধ্যে নিয়ে আটকে রেখে হুমকী ধামকী দেওয়ার এক পর্যায় মারপিট করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা রাজু হোসেনের পকেটে থাকা নগদ ৭ হাজার ৫শ’ টাকা ও সাড়ে ১১ হাজার টাকা মূল্যের স্যামসাং মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। রাজু হোসেনের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা হুমকী দিয়ে চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় রাজু হোসেনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।